Author Topic: An article for Young Entrepreneur  (Read 514 times)

Offline Delower Hossain

  • Newbie
  • *
  • Posts: 4
    • View Profile
An article for Young Entrepreneur
« on: October 26, 2013, 03:16:33 PM »
 তরুন উদ্যোক্তারাই পারে সম্ভাবনার বাংলাদেশ গড়তে



বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনার দেশ। স্বাধীনতাত্তোর চার দশকের পথচলায় বাংলাদেশের অর্জনের তালিকা খুব ছোট নয়, বরং গর্ব করার মতো অনেক অর্জন রয়েছে। বাংলাদেশ সম্পর্কে এক সময় যারা নেতিবাচক ধারণা পোষণ করতেন, তা থেকে তারা সরে এসে বাংলাদেশের বর্তমান সাফল্য দেখে বিম্মিত হয়েছেন। নাম করা সব বিশ্ব গণমাধ্যমের চোখেও বাংলাদেশের বিস্ময়কর উত্থানের ভঙ্গিটি প্রতিনিয়তই ধরা পড়ছে।বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে তরুণদের এগিয়ে আসতে হবে।

বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ একটি দেশ। এক সময় দেশের অতিরিক্ত জনসংখ্যাকে ‘এক নম্বর জাতীয় সমস্যা’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। কিন্তু এ জনসংখ্যা এখন আর সমস্যা নয়, বরং বিপুল সম্ভাবনার ক্ষেত্র। বাংলাদেশের জনশক্তির সবচেয়ে সম্ভাবনাময় দিক হচ্ছে এর বেশির ভাগই তরুণ। আর এই তরুণ জনশক্তি দেশের ভাগ্য পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি অবদান রাখতে পারে।
বাংলাদেশের মত এমন কোন দেশ নেই যেখানে অধিক সংখ্যক সম্ভাবনাময় তরুণ বিদ্যমান। আমরা সবাই বিশ্বাস করি যে তরুনরাই পারে সম্ভাবনার বাংলাদেশ গড়তে।  তরুণদের যদি সঠিকভাবে দিকনির্দেশনা না দেয়া হয় তাহলে তারা বিভিন্ন অসামাজিক অথবা রাজনৈতিক ভাবে নিজেকে জড়িয়ে ফেলবে। তরুণদের অনেক কিছু করার সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও বর্তমান প্রেক্ষাপট যদি আমরা দেখি তরুণরা রাজনৈতিক ভাবে  প্ররোচিত হয়। যেটা আমাদের দেশের জন্য মঙ্গলজনক না। তরুণদের এমনভাবে প্ররোচিত হচ্ছে যে তারা মৃত্যুকে পরোয়া না করে যে কোন নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হচ্ছে। ফলে আমারা যে বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখি তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব না। তরুণদের জন্য আমাদের অনেক কিছু করনীয় আছে, যা আমাদের ভাবা দরকার।
 
এই পরিপ্রেক্ষিতে, আমাদের যে অর্থনৈতিক অবস্থা তাতে অধিক কর্মসুযোগ সৃষ্টি হওয়ার জন্য কোন পদক্ষেপ চোখে পড়ছে না। এখন আমাদের গার্মেন্টস শিল্প অনেক কর্ম সুযোগ দিচ্ছে। মোট রপ্তানি আয়ের ৭০% গার্মেন্টস থেকে আসছে। আগামী দিনে এই শিল্পে অনেক বাধা আসতে পারে এবং রপ্তানি আয়ের পরিমান ৭০% থেকে নেমে আসতে পারে। ব্যাপক পরিমান কর্মের সুযোগ হতে পারে এমন শিল্প নাও আসতে পারে, এক্ষেত্রে নতুন কোন শিল্প দিতে গেলে এবং আমাদের অভ্যন্তরীণ শিল্প গুলো সম্প্রসারণ ও বিশ্বমানের করতে গেলে প্রচুর উদ্যোক্তা প্রয়োজন। আমাদের দেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য নানান কর্মসূচির মাধ্যমে তরুণদের উৎসাহ দিয়ে থাকে। কিন্তু উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য শুধু উৎসাহই কি যথেষ্ট ? 

যদি আমরা তাই মনে করি , তাহলে শুধু উৎসাহ দিয়ে প্রতি দশ লাখে একশ জন উদ্যোক্তা বের করা সম্ভব, যা  দেশের জন্য অতি নগণ্য ও হতাশাজনক। এজন্য উদ্যোক্তা  তৈরির হার বাড়াতে গেলে উৎসাহের পাশাপাশি পর্যাপ্ত জ্ঞান এবং  দিকনির্দেশনা প্রয়োজন। এমতাবস্থায়, তরুণরা যদি সঠিকভাবে ‘উৎসাহ’, ‘জ্ঞান’ ও ‘দিকনির্দেশনা’ না পায় তাহলে দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে না। আমরা বর্তমানে লক্ষ্য করি যে বাংলাদেশ এবং অন্যান্য দেশ সঠিক দিকনির্দেশনা দিয়ে বিভিন্ন শিল্পী তৈরি করছে যা শুধু উৎসাহ দিয়ে সম্ভব হতোনা। তাই আমরা মনে করি যে, উদ্দেশ্য নিয়ে উদ্যোক্তা তৈরি করা তিনটি জিনিসের ওপর নির্ভর করে - ‘উৎসাহ’, ‘জ্ঞান’ ও ‘দিকনির্দেশনা’।

আমরা যদি অতীতে ফিরে যাই, তখন যারা উদ্যোক্তা হয়েছে তাদের হয়ত পর্যাপ্ত মূলধন,পরিবেশ,প্রযুক্তির ছোঁয়া, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিলনা, এমন কি অনেক উদ্যোক্তার নুন্নতম শিক্ষাও ছিল না। অথচ তারা এখন দেশের সফল ব্যবসায়ী। এবার আমরা যদি বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করি, আধুনিক জগতে পর্যাপ্ত মূলধন,পরিবেশ,প্রযুক্তির ছোঁয়া, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও আশানুরূপ উদ্যোক্তা বের হচ্ছে না ।
আমারা মনে করি বাংলাদেশে এমন কিছু কর্মসূচি চালু করা দরকার যেখানে শুধু উৎসাহ নয় তার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় ‘জ্ঞান’ ও ‘দিকনির্দেশনা দেয়া হবে, সে উদ্যোগ কি আমরা দেখতে পাচ্ছি ? না আমরা দেখছি না। তবে আমার মনে হয় সে রকম কোন উদ্যোগ যদি নেয়া যায় তবে সেটা হবে বর্তমানের সঠিক পদক্ষেপ যা আমাদের দেশের অর্থনীতিতে যুগান্তকারী বিপ্লব আনবে।