VoIP: A Technological Gift for the Third World Perspective: Bangladesh

Author Topic: VoIP: A Technological Gift for the Third World Perspective: Bangladesh  (Read 388 times)

Offline arefin

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1173
  • Associate Professor, Dept. of ETE, FE
    • View Profile


 বাংলাদেশে কম খরচে অনেকটা বিনামূল্যে কথা বলার সেবা আইপি ফোন চালু হয় ২০১০ সালের ১৬ মার্চ। দেশের ১৮টি প্রতিষ্ঠান আইপি ফোনের সেবা দিচ্ছে। কিন্তু মোবাইল অপারেটররা তাদের গ্রাহক কমে যাওয়ার ভয়ে নানানভাবে আইপি ফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অসহযোগিতা করছে। ফলে নানান জটিলতার কারণে সম্ভাবনাময় এই খাত পিছিয়ে যাচ্ছে।

২০০৯ সালে বাংলাদেশ টেলিকম নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি ২৬টি কোম্পানিকে আইপি টেলিফোন সার্ভিসের লাইসেন্স দেয়। তবে এর মধ্যে ১৮টি কোম্পানি তাদের সেবা চালু করে পরের বছর ১৬ মার্চ থেকে। বর্তমানে চালু থাকা আইপি ফোন প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে, অ্যাডভান্স ডাটা নেটওয়ার্ক সিস্টেম, অগি্ন সিস্টেম, বিডিকম অনলাইন, বেক্সিমকো, ব্র্যাকনেট, বিটিএস কমিউনিকেশন, কানেক্ট বিডি, ঢাকাকম, গ্রামীণ সাইবার নেট, গ্লোবাল অ্যাকসেস, এইচআরসি টেকনোলোজিস, ইনফরমেশন সার্ভিস নেটওয়ার্ক, ইনোভেটিভ অনলাইন, লিংক-৩ টেকনোলোজিস, মেট্রোনেট বিডি, অপটিম্যাক্স বিডি, রয়েল গ্রিন অনলাইন ও টেলনেট কমিউনিকেশন।

আইপি ফোন এক ধরনের ভিওআইপি টেলিফোন। তবে এ ফোন বৈধভাবে শুধু দেশের ভেতরেই ব্যবহার হয়। বাংলাদেশে এই 'ভিওআইপি' ইতিমধ্যেই অনেক আলোচিত-সমালোচিত হয়েছে। তবে সরকার নানা শর্তসাপেক্ষে ধীরে ধীরে এই প্রযুক্তি উন্মুক্ত করছে। অনুমোদন পাওয়া আইপি ফোন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা জানান, তাঁরা ইতিমধ্যেই গ্রাহকদের আইপি টেলিফোন সেবা প্রদান শুরু করেছেন। তবে এর মধ্যে ১০ থেকে ১২টি প্রতিষ্ঠান জোরেসোরেই মাঠে নেমেছে। আর গ্রাহকের সংখ্যা হিসাবে তিন-চারটি প্রতিষ্ঠান অনেকাংশে এগিয়ে আছে। স্বল্প খরচে কথা বলা ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার করে এ ফোনের গ্রাহকরা নিজেদের মধ্যে কথা বলে থাকেন। ফলে এ ফোনে কথা বলার খরচ অনেক কম। আইপি টেলিফোনি সেবাপ্রতিষ্ঠান বিডিকম অনলাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুমন আহমেদ সাবির জানালেন, কোনো ধরনের মাসিক ফি ছাড়াই শুধু হ্যান্ডসেট কিনে কিংবা সফটফোন সফটওয়্যার ব্যবহারের মাধ্যমে সাশ্রয়ী কলরেটে কথা বলতে পারেন। তবে কিছু প্রতিষ্ঠান কানেকশন চার্জ বাবদ ১০০ থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে থাকে। ৪০ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৬৫ পয়সা মিনিটে কথা বলতে পারেন যেকোনো মোবাইল অপারেটরের নম্বরে। এ ছাড়া আইপি ফোন থেকে আইপি ফোনে কথা বলা যায় বিনা মূল্যেই। আর বিদেশে কল করার ক্ষেত্রে বিটিআরসির নির্ধারিত হারেই কথা বলা সম্ভব।

বাংলাদেশ আইএসপি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আখতারুজ্জামান মঞ্জু বলেন, 'আমরা চাই সরকার একটি ইন্টারনেট পলিসি তৈরি করে সাশ্রয়ী রেটে আইপি টেলিফোনের গ্রাহকদের কথা বলার সুযোগ তৈরি করে দিক। আমরা শুরু থেকেই চেয়েছিলাম, আইপি থেকে মোবাইল ফোনে কথা বলার খরচ যেন মিনিটে ৩০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। তবে দেশের মোবাইল ফোন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর আপত্তির কারণে সরকার সর্বোচ্চ ৬৫ পয়সা নির্ধারণ করে দিয়েছে। ফলে এখন ৪০ থেকে শুরু করে ৬৫ পয়সা মিনিটে কথা বলার সুযোগ পাচ্ছেন গ্রাহকরা।'

আইপি টেলিফোন ব্যবহারে যা প্রয়োজন আইপি টেলিফোন ব্যবহার করতে অবশ্যই ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে। ন্যূনতম ১২ কেবিপিএস সংযোগেই আইপি টেলিফোনে কথা বলা যায়। কথা বলার পাশাপাশি এ ফোনের মাধ্যমে ব্যবহারকারীর ভিডিওচিত্র দেখার সুযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে আইপি টেলিফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান ঢাকাকম-এর সিস্টেমস ম্যানেজার সুমন কুমার সাহা বলেন, 'গ্রাহকরা তাঁদের সাধারণ টেলিফোন সেটে অ্যাডাপ্টার লাগিয়ে আইপি টেলিফোন ব্যবহার করতে পারবেন। দেশের বাজারে অ্যাডাপ্টারের দাম পড়বে প্রায় দুই হাজার টাকা। দুই থেকে তিন হাজার টাকায় সাধারণ আইপি টেলিফোন সেট পাওয়া যাবে। পরস্পরের ছবি দেখতে হলে প্রয়োজন হবে ভিডিও টেলিফোন সেট।'

বর্তমানে দেশের বাজারে ভিডিও টেলিফোন সেটের দাম ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। এ ছাড়া ডেস্কটপ কম্পিউটার ও ল্যাপটপে সফটওয়্যার ইনস্টল করেও আইপি টেলিফোন সংযুক্ত করা যাবে। এ ক্ষেত্রে ছবির জন্য ওয়েবক্যাম ব্যবহার করতে হবে। যেসব মুঠোফোনে 'জিপিআরএস' ও 'এজ' ব্যবহারের সুবিধা রয়েছে, তাতেও আইপি টেলিফোন সেবা পাওয়া যাবে। বাজারে এখন অনেক উন্নতমানের মুঠোফোনে আইপি ডায়ালার রয়েছে। আইপি ফোন যেভাবে কাজ করেইন্টারনেটের মাধ্যমে ভয়েস আদান-প্রদানে সক্ষম এই আইপি ফোন মূলত কাজ করে ইন্টারনেট প্রটোকল ব্যবহার করে। একই ঘরানার অন্যান্য প্রযুক্তির তুলনায় অনেক দ্রুত ইন্টারনেট প্রটোকল ব্যবহারে সক্ষম এই আইপি টেলিফোন।

এগিয়ে রয়েছে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগু লোআইপি টেলিফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। সাধারণ গ্রাহকের তুলনায় করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি উন্নতমানের হওয়ায় করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো এই সেবা বেশি ব্যবহার করতে পারছে। গত দুই-তিন বছরে এ ক্ষেত্রে ব্যাপক অগ্রগতি হয়েছে বলে মনে করেন বিডিকম অনলাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুমন আহমেদ সাবির। এ ছাড়া ভিডিও কনফারেন্সিং, কল ওয়েটিং, কল হোল্ডের মতো বিভিন্ন সুবিধার জন্য করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো আইপি টেলিফোনি সেবা নিতে আগ্রহী হচ্ছে। আইপি টেলিফোন ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু প্রতিবন্ধকতা এখনো রয়ে গেছে। সরকারিভাবে মোবাইল অপারেটরগুলোর ওপর কোনো নির্দেশনা নেই। তাই নিজেদের গ্রাহক কমার ভয়ে কিছু কিছু মোবাইল অপারেটর আইপি টেলিফোনি সেবা ব্লক করে রেখেছে। ফলে এসব মোবাইল কানেকশন ব্যবহারকারীরা আইপি টেলিফোনসেবা নিতে পারছেন না। তবে প্রায় সব ব্রডব্র্যান্ড ইন্টারনেট কানেকশনেই আইপি টেলিফোন ব্যবহার করা সম্ভব।
“Allahumma inni as'aluka 'Ilman naafi'an, wa rizqan tayyiban, wa 'amalan mutaqabbalan”

O Allah! I ask You for knowledge that is of benefit, a good provision and deeds that will be accepted. [Ibne Majah & Others]
.............................
Taslim Arefin
Assistant Professor
Dept. of ETE, FE
DIU