Author Topic: ল্যাপটপ চার্জ না হলে কি করবেন?  (Read 1519 times)

Offline faruque

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 617
    • View Profile
ল্যাপটপ চার্জ না হলে কি করবেন?



ল্যাপটপ বর্তমানে আমাদের দেশের তরম্নণ প্রজন্মের ক্রেজ৷ তাই প্রত্যেক ব্যবহারকারীই ল্যাপটপকে ব্যবহার করেন খুব যত্ন সহকারে৷ তারপরও ব্যবহারকারীরা বেশ কিছু সমস্যার মুখোমুখি হন মাঝেমধ্যে৷ ল্যাপটপ ব্যবহারকারীরা প্রায় সময় যেসব সমস্যার মুখোমুখি হন, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি হলো ল্যাপটপ যথাযথভাবে চার্জ না হওয়া৷
ল্যাপটপে পস্নাগইন করার পর উজ্জ্বল লেড ইন্ডিকেটরের আলো এবং একটি ডিসপেস্ন জাহির করে ল্যাপটপের সক্রিয়তা বা সজীবতা৷ অনত্মত এ কারণে এটি কিছু কাজ করতে পারে৷ কখনও কখনও এর পরিবর্তে যা কিছু ঘটে তা এসি অ্যাডাপ্টার যুক্ত করার পর ঘটে থাকে৷ তার কারণ, ব্যাটারির কার্যকরী ৰমতা প্রায় নিঃশেষিত হয়ে যাওয়া৷ এর ফলে ল্যাপটপ কোনো কিছুই করতে পারে না৷ কোনো উজ্জ্বল আলো নেই, কোনো ডিসপেস্ন নেই এবং ব্যাটারি চার্জিংয়ের কোনো সঙ্কেতও নেই৷ কেনো এমন হলো? কেনো এটি কাজ করছে না? এর জন্য কি করা দরকার-এমন সব প্রশ্নের জবাব জানাতেই এ লেখার অবতারণা?
এমন সমস্যার সহজ সমাধান হলো ল্যাপটপকে রিচার্জ করা৷ চার্জার পস্নাগ করার সাথে সাথে কাজ করা শুরম্ন করবে৷ লৰণীয়, ওয়াল আউটলেট এবং আপনার ব্যাটারির মাঝে কয়েকটি ধাপ ও অংশ রয়েছে, যা ফেল করতে পারে৷ এসব সমস্যার কোনো কোনোটি আপনি নিজে সহজেই সমাধান করতে পারবেন সফটওয়্যার টোয়েকের মাধ্যমে বা নতুন ব্যাটারি প্রতিস্থাপন করে৷ তবে কিছু সমস্যার জন্য দরকার হতে পারে রিপেয়ার সেন্টারের সহযোগিতা নেয়া অথবা পুরো সিস্টেমের প্রতিস্থাপন করা৷ কেনো সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে তা জানতে পারলে আপনার মূল্যবান শ্রমঘন্টা যেমন বাঁচবে, তেমনি রিপেয়ারের বাড়তি খরচও বহন করতে হবে না৷ ইনসাইট-আউটসাইট অ্যাপ্রোচের মাধ্যমে খুব সহজেই চিহ্নিত করতে পারবেন কোথা থেকে সমস্যাটি হচ্ছে এবং খুব কম খরচে সমাধানের উপায়ও বের করতে পারবেন নিচের বর্ণিত ধাপগুলো অনুসরণ করে৷

ল্যাপটপ পস্নাগইন অবস্থায় আছে কী?

আপনার ল্যাপটপ পস্নাগইন করেছেন কিনা- এমন প্রশ্ন হাস্যকর হলেও চেক করে নিন ল্যাপটপ সত্যি সত্যিই পস্নাগইন অবস্থায় আছে কিনা৷ কেননা, কোনো সফটওয়্যার টোয়েক বা হার্ডওয়্যার রিপেয়ার কৌশলই বিদু্যত্‍ সংযোগহীন ল্যাপটপকে জাদুর ছোঁয়ায় পাওয়ার অন তথা সক্রিয় করাতে পারবে না৷ সুতরাং কোনো কিছু চেক করার আগে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে এসি আউটলেট এবং ল্যাপটপ পস্নাগ যথাযথভাবে বসানো আছে কিনা৷ এসি অ্যাডাপ্টার চেক করে দেখুন বা ভেরিফাই করম্নন যে, সব ধরনের রিমুভাল কর্ড ঠিকভাবে ঢুকানো আছে কিনা৷ এরপর নিশ্চিত করম্নন ব্যাটারির কম্প্যার্টমেন্টে যথাযথভাবে বসানো হয়েছে কিনা৷ এর সাথে আরও নিশ্চিত করম্নন ব্যাটারি বা ল্যাপটপ কন্টাক্ট পয়েন্টে কোনো সমস্যা নেই৷ সবশেষে খুঁজে দেখুন সমস্যাটি আদৌ ল্যাপটপের কিনা৷ এজন্য পাওয়ার কর্ডকে ভিন্ন কোনো আউটলেটে পস্নাগইন করে দেখুন কোনো ফিউজ নষ্ট হয়ে গেছে কিনা৷
এমন অবস্থায় বলা যায়, এ সমস্যাটি ব্যবহারকারীর ভুলের কারণে সৃষ্টি হয়নি৷ এ সমস্যার সূত্রপাত হলো ল্যাপটপের পাওয়ার-সংশিস্নষ্ট৷ এখন খুঁজে দেখা দরকার সমস্যাটি কোথা থেকে সৃষ্টি হয়েছে বা হতে পারে৷ কোথায় সমস্যাটি নেই সেসব ৰেত্র বাদ দিয়ে কাজটি শুরম্ন করম্নন৷

ব্যাটারি অপচয় হওয়া

ব্যাটারির বিশুদ্ধতা চেক করার জন্য ব্যাটারিকে পুরোপুরি অপসারণ করম্নন এবং ল্যাপটপে পস্নাগইন করার চেষ্টা করম্নন৷ যদি ল্যাপটপের পাওয়ার যথাযথভাবে অন থাকে, তাহলে সমস্যাটি হতে পারে ব্যাটারির৷

ব্রিকম, বার্নআউট ও শর্টস

ল্যাপটপ বা নোটবুকের পাওয়ার কর্ড সাধারণত বেশ দীর্ঘ হয়ে থাকে৷ দীর্ঘ পাওয়ার কর্ড যতটুকু সম্ভব বেস্নন্ডিং এবং ফ্লেক্সিং থাকে৷ সুতরাং চেক করে দেখা উচিত ফাঁসের মাঝে কোনো জায়গা ভেঙে বা ছিঁড়ে গেছে কিনা৷ যেকোনো ব্রোকেন কানেকশনের শেষ প্রানত্ম চেক করে দেখা উচিত৷ যেমন পস্নাগ টানা শিথিল কিনা৷ এসি ব্রিঙ্ পরখ করে দেখুন৷ এটি কী ডিসকালারড তথা বিবর্ণ হয়ে গেছে কিনা৷ কোনো অংশ মোচড়ানো বা সম্প্রসারিত কিনা৷ জোড়ে শ্বাস টেনে দেখুন পস্নাস্টিক পোড়া গন্ধ কিনা৷ যদি তাই হয়, তাহলে ধরে নিতে পারেন সমস্যাটি এখানেই৷

কানেক্টর চেক করে দেখুন

যখন আপনি পস্নাগইন করবেন ল্যাপটপের পাওয়ার কানেক্টর, সেই কানেক্টরকে মোটামুটিভাবে সলিড হতে হবে৷ যদি এটি হঠাত্‍ করে অনিশ্চিভাবে এদিক-ওদিক নড়াচড়া করে অথবা ঢিলা হয় বা রিসিভিং সকেট উন্মুক্ত হলে চেসিসের ভেতরে পাওয়ার জ্যাক ভেঙে যেতে পারে৷ ডিসকালারেশন বা পোড়া গন্ধ এলে ধরে নিতে পারেন পাওয়ার কানেক্টর ড্যামেজ হয়ে গেছে৷ রিপেয়ার করা অপরিহার্য হয়ে পড়েছে৷

তাপকে পরাসত্ম করা

নন-চার্জিং ব্যাটারির কারণে কখনও কখনও ল্যাপটপ অনেক গরম হয়ে ওঠে৷ এই সমস্যাটির দুই ভাঁজ৷ একটি হলো ব্যাটারির ওভার তথা খুব বেশি তাপ প্রতিরোধে সিস্টেম শাটডাউন হওয়া এবং আগুনের কারণ হতে পারে তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায়৷ ব্যাটারি সেন্সর মিস ফায়ার করতে পারে, সিস্টেমকে অবহিত করবে যে ব্যাটারি পুরোপুরি চার্জ হয়ে গেছে অথবা সম্পূর্ণরূপে মিশিং হয়েছে, যার কারণে চার্জিংয়ে সমস্যা হচ্ছে৷ এ সমস্যা আরও অনেক প্রকট আকার হতে পারে পুরনো ল্যাপটপের ৰেত্রে, যেখানে ইদানীংকার মতো মানসম্মত কুলিং টেকনোলজি ব্যবহার হয় না৷ অথবা ল্যাপটপ কোলে নিয়ে বা বালিশ-কম্বলসহ বিছানায় ব্যবহার করলে অনেক সময় কুলিং ভেন্ট আবৃত হয়ে যায়৷ এ ৰেত্রে সিস্টেমকে ঠা-া করম্নন এবং নিশ্চিত হওয়ার জন্য সময় নিন যে সিস্টেমের এয়ার ভেন্ট পরিষ্কার এবং বাধাহীন অবস্থায় আছে৷
কর্ড ও ব্যাটারি সোয়াপ আউট করা
এগুলো ল্যাপটপের সবচেয়ে সসত্মা এবং সোয়াপ অংশ৷ একটি রিপেস্নসমেন্ট পাওয়ার ক্যাবল বেশ দামী এবং ব্যাটারি প্রতিস্থাপনও বেশ ব্যয়বহুল৷ ক্যাবল রিপেস্নসমেন্ট সবচেয়ে সহজে খুঁজে পাওয়া যায় ল্যাপটপের মডেল নাম দিয়ে৷ ব্যাটারিতে সবসময় তাদের মডেল নাম্বার দেয়া থাকে৷ এই রিপেস্নসমেন্টের সময় খেয়াল রাখতে হবে এটি যেনো ল্যাপটপের ইকু্যইপমেন্টের ভোল্টেজ স্পেসিফিকেশনের সাথে ম্যাচ করে৷ রিপেস্নসমেন্টের সময় আরও সচেতন থাকতে হবে যে, সসত্মায় রিপেস্নসমেন্টের অংশে যে থার্ড পার্টি ম্যানুফেকচারার পণ্য ব্যবহার হয় তা সবসময় মানসম্পন্ন হয় না৷ এ ৰেত্রে পরিহার করা হয়েছে ওইসব সমস্যা, যার কারণ কিন্তু কর্ড বা এনভায়রনমেন্টাল৷ এরপরও যদি আপনি নিজেকে খুব অসহায় মনে করেন, তাহলে সমস্যাটি কমপিউটারের৷ এ সমস্যাটি উদ্ভব হয়েছে হয় ত্রম্নটিপূর্ণ হার্ডওয়্যার বা ত্রম্নটিপূর্ণ সফটওয়্যারের কারণে৷

সেটিং চেক করা

উইন্ডোজ ল্যাপটপের ৰেত্রে কন্ট্রোল প্যানেলে পাওয়ার অপশন ওপেন করম্নন৷ পস্ন্যান সেটিং ওপেন করে ভিজু্যয়ালি চেক করে দেখুন সবকিছু যথাযথভাবে সেট করা আছে কিনা৷ পরখ করে দেখুন ব্যাটারি ডিসপেস্ন এবং সস্নিপ অপশন ভুলভাবে সেট করা হয়েছে কিনা৷ উদাহরণস্বরূপ, আপনার ব্যাটারি সেটিং সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে যদি কমপিউটারকে সেট করেন শাটডাউনে, যখন ব্যাটারি লেভেল খুব নিচুতে নেমে যায় এবং নিচু ব্যাটারি লেভেলকে খুব উঁচু তথা হাই পার্সেন্টেজে সেট করা হয়৷ আপনি ইচ্ছে করলে সস্নিপ এবং শাটডাউন ধরনের অ্যাকশনকে অ্যাসাইন করতে পারেন যখন আপনার লিড বন্ধ থাকবে বা পাওয়ার বাটন চাপা থাকবে৷ যদি এই সেটিং পরিবর্তন করা হয় কিংবা ক্যাবল পরিবর্তন করা হয়, তাহলে ধারণা বা সন্দেহ করতে পারেন পাওয়ার ম্যালফাংশনের কারণেই এমন হয়েছে, এমনকি ব্যাটারির কোনো ফিজিক্যাল সমস্যা না থাকলেও৷ আপনার সেটিং কোনো সমস্যা সৃষ্টি করছে না সে ব্যাপারে নিশ্চিত থাকার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো পাওয়ার প্রোফাইলকে ডিফল্ট সেটিংয়ে রিস্টোর করা৷

ম্যাক ল্যাপটপের ৰেত্রে

ম্যাক ল্যাপটপের সিস্টেম প্রেফারেন্সে সিলেক্ট করম্নন এনার্জি সার্ভার প্যান এবং রিভিউ করম্নন আপনার প্রেফারেন্স৷ ম্যাক সেটিং অ্যাডজাস্ট করা থাকে সস্নাইডার দিয়ে৷ এর মাধ্যমে আপনি সিলেক্ট করতে পারবেন কমপিউটার, কতৰণ পর্যনত্ম আইডল থাকতে পারবেন সস্নিপ মোডে যাওয়ার আগে৷ যদি বিরতি খুব সংৰিপ্ত হয়, তখন সন্দেহ করতে পারেন ব্যাটারি ইসু্যকে যে প্রকৃত সমস্যার কারণ হলো সেটিং৷ ব্যাটারি পাওয়ার এবং ওয়াল পাওয়ার সেটিং চেক করতে ভুলে গেলে হবে না৷ সেটিং পরিবর্তনের কারণে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে কিনা তা পরখ করে দেখার জন্য ডিফল্ট সেটিংয়ে ফিরে যেতে পারেন৷
ড্রাইভার আপডেট করা
উইন্ডোজ ল্যাপটপের ৰেত্রে কন্ট্রোল প্যানেলে ড্রাইভার ম্যানেজার ওপেন করম্নন৷ ব্যাটারির অনত্মর্গত তিনটি আইটেম দেখা যায়৷ একটি ব্যাটারির জন্য, অপরটি চার্জারের জন্য৷ তৃতীয় ও শেষটি The aril হিসেবে লিস্টেড হয়৷ প্রতিটি আইটেম ওপেন করলে প্রোপার্টিজ উইন্ডো আবিভর্ূত হবে৷ ‘ড্রাইভার’ ট্যাবের অনত্মর্গত ‘আপডেট ড্রাইভার’ লেবেল করা একটি বাটন পাবেন৷ এখানে উলিস্নখিত তিনটি ফিচারের ড্রাইভারের আপডেট প্রসেসের জন্য এগিয়ে যান৷ সবগুলো ড্রাইভার আপডেট হওয়ার পর ল্যাপটপ রিবুট করম্নন এবং পরে আবার পস্নাগ করম্নন৷ এতে সমস্যার সমাধান না হলে The Original web siteআনইনস্টল করে রিবুট করম্নন৷
ম্যাক ল্যাপটপের ৰেত্রে : একটি ম্যাক ল্যাপটপে আপনাকে Love it’s make heart ফিচারকে রিসেটিংয়ের চেষ্টা করতে হবে৷ রিমুভাল ব্যাটারি সংবলিত ল্যাপটপের জন্য এটি শাটিংডাউন পাওয়ার, রিমুভিং দ্য ব্যাটারি, ডিসকানেকটিং পাওয়ার এবং প্রেসিং দ্য পাওয়ার বাটন ফর পাঁচ সেকেন্ডের মতো সহজ-সরল৷ ব্যাটারিকে আবার ইনসার্ট করম্নন৷ এবার পাওয়ার যুক্ত করে ল্যাপটপ চালু করম্নন৷

চেসিসের ভেতরে ব্যাটারি সিল করা থাকে, নতুন ম্যাকের ৰেত্রে কমপিউটার পাওয়ার অফের জন্য পাওয়ার চেপে ধরে থাকুন৷ এ কাজটি করার জন্য কীবোর্ডের বাম দিকে Love it’s only love চাপুন৷ এবার কী এবং পাওয়ার বাটন যুগপত্‍ভাবে ছেড়ে দিন৷ এরপর চেষ্টা করম্নন ল্যাপটপের পাওয়ার অন করার৷

অভ্যনত্মরীণ সমস্যা

উপরে উলিস্নখিত সব প্রচেষ্টায় ব্যর্থ হলেন, অন্য পাওয়ার ক্যাবল ও ব্যাটারি দিয়ে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলেন, ব্যর্থ হলেন সেটিং চেক এবং রিচেক করেও, সম্ভাব্য সফটওয়্যার সমস্যাও সমাধান করলেন, তারপরও সনত্মোষজনক ফলাফল পেলেন না৷ তাহলে ধরে নিতে পারেন সমস্যাটি হতে পারে মেশিনের ভেতরের৷ বেশ কিছু অভ্যনত্মরীণ পার্টস সমস্যার কারণ হতে পারে, যখন সেগুলো ম্যালফাংশন বা ফেইল হয়৷ এ ৰেত্রে সমস্যার সবচেয়ে সাধারণ বা কমন কারণ হতে পারে ল্যাপটপের মাদারবোর্ড, লজিক বোর্ড, ভ্যামেজ চার্জিং সার্কিট এবং ম্যালফাংশন ব্যাটারি সেন্সর৷ এমন অবস্থায় ল্যাপটপ প্রস্তুতকারকের সাথে যোগাযোগ করম্নন এবং ওয়ারেন্টিতে রিপেয়ার অপশন কাভার করে কিনা অথবা স্থানীয় কমপিউটার রিপেয়ার সেন্টারের সাথে যোগাযোগ করম্নন৷

Offline asitrony

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 534
    • View Profile
Thanks for the post.