Author Topic: সুলাইমান (আ.)-এর ‘ড্রোন’ হুদহুদ  (Read 142 times)

Offline Md. Zakaria Khan

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 307
  • active
    • View Profile
বর্তমান বিশ্বে ‘ড্রোন’ অত্যন্ত আলোচিত একটি শব্দ। মানবহীন পাখিসদৃশ এই যন্ত্রবিশেষ চালাতে কোনো পাইলটের প্রয়োজন হয় না। দূর থেকেই তারহীন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার মাধ্যমে অথবা আগে থেকে নির্ধারিত প্রগ্রামিং দ্বারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ড্রোন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। প্রতিরক্ষা থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত নানা কাজে ড্রোনের ব্যবহার লক্ষণীয়। বর্তমানে বিভিন্ন নিরাপত্তা সংস্থা তাদের অফিস থেকেই বিভিন্ন ভবনের ছাদ এবং অন্যান্য উঁচু ভবন ড্রোনের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ নজরদারির আওতায় রাখছে।

বর্তমানে গুগল, অ্যামাজনের মতো বড় বড় কম্পানি পণ্য পরিবহন, যোগাযোগ রক্ষা, তথ্য পরিবহনসহ নানা কাজে সার্থকতার সঙ্গে ড্রোনকে কাজে লাগাচ্ছে। মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায়ও আজকাল ড্রোন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এ ছাড়া সিনেমা, নিউজ ও বিভিন্ন ডকুমেন্টারি তৈরি করতে মিডিয়াগুলোও ড্রোন ব্যবহার করছে। বাংলাদেশেও প্রতিরক্ষাসহ নিরাপত্তাজনিত নানা কাজে দিন দিন ব্যবহার বাড়ছে পাখিসদৃশ এই যন্ত্রটির।

বিশ্ব শাসনকারী নবী হজরত সুলাইমান (আ.)-এরও একটি পাখি ছিল, যার নাম হুদহুদ। পাখিটি ছিল বর্তমান যুগের ড্রোনের চেয়েও শক্তিশালী। এ যুগের এআই (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) আমাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল দিতে না পারলেও হুদহুদের ছিল আল্লাহ প্রদত্ত পূর্ণ বুদ্ধিমত্তা। আল্লাহ প্রদত্ত শক্তিশালী জিপিএস সিস্টেমের মাধ্যমে হুদহুদ এনে দিতে পারত সুলাইমান (আ.)-এর বিশাল রাজ্যের খোঁজখবর। শুধু তা-ই নয়, মহান আল্লাহ এই পাখিটিকে এমন সেন্সর দান করেছেন, যার মাধ্যমে সে ভূগর্ভের বস্তুসমূহ এবং ভূগর্ভে প্রবাহিত পানি হাজার ফুট ওপর থেকে শনাক্ত করতে পারত। তার চোখগুলো ছিল বর্তমান যুগের ডিজিটাল ক্যামেরার চেয়ে হাজার গুণ শক্তিশালী। সুলাইমান (আ.) তাঁর বিশাল সেনাবাহিনী নিয়ে যে এলাকায় থাকতেন, সেখানে যেহেতু পানি ছিল না, তাই হজরত তিনি সব সময় পানির খোঁজখবর রাখার জন্য ওই পাখি কাছে রাখতেন। পবিত্র কোরআনের সুরা নামলে এই পাখির বর্ণনা পাওয়া যায়। সেখানে পাখিটি হজরত সুলাইমান (আ.)-কে তাঁর অগোচরে বেড়ে ওঠা শক্তি ‘সাবা’ রাজ্যের সংবাদ দিয়েছিল।

ঐতিহাসিক এই পাখিটি একবার দেখলেই চোখ জুড়িয়ে যায়। ২০০৮ সালের মে মাসে পাখিটিকে দেশের জাতীয় পাখির স্বীকৃতি দিয়েছে ইসরায়েল। (ওয়াইনেট নিউজ)

উপমহাদেশে পাখিটি বেশি দেখা যায়। মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিটি দেশ, মিসর, চাদ, মাদাগাস্কার, এমনকি ইউরোপের কোনো কোনো দেশেও এর দেখা পাওয়া যায়। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত এবং আমাদের দেশেও মাঝেমধ্যে এই পাখির দেখা পাওয়া যায়। আমাদের দেশের মানুষ এটিকে মোহনচূড়া বা কাঠকুড়ালি হিসেবে চেনে। যেহেতু হুদহুদ পাখির অনেক উপপ্রজাতি আছে, তাই আমাদের দেশের মোহনচূড়াই সুলাইমান (আ.)-এর হুদহুদ কি না তা নিয়ে সংশয় আছে। ইংরেজিতে একে হুপো বা হুপি বলে ডাকা হয়। আরবি ও উর্দুতে একে ডাকা হয় হুদহুদ নামে।

পাখিটির শরীর বাদামি এবং ডানা ও লেজে সাদা-কালো দাগ রয়েছে। মাথায় আছে রাজমুকুটের মতো সুন্দর একটি ঝুঁটি। সেই ঝুঁটির হলদে-বাদামি পালকের মাথাটা কালো রঙের।

সাধারণত এই পাখিটি ২৫ থেকে ৩২ সেন্টিমিটার (৯.৮ থেকে ১২.৬ ইঞ্চি) পর্যন্ত লম্বা হয়। এদের পাখাগুলো ছড়ালে বিস্তৃত হয় ৪৪ থেকে ৪৮ সেন্টিমিটার (১৭ থেকে ১৯ ইঞ্চি) পর্যন্ত। ওজন ৪৬ থেকে ৮৯ গ্রাম পর্যন্ত। এরা সাধারণত মরুভূমিসংলগ্ন এলাকায় থাকতে ভালোবাসে। মাটিতে ঠোঁট ঢুকিয়ে পোকা খেয়ে জীবন ধারণ করে। এদের পর্যবেক্ষণক্ষমতা অসাধারণ।

লেখক : আলেম ও সাংবাদিক

muftimortoj a@gmail.com