Author Topic: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা  (Read 207 times)

Offline rakib.cse

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 92
  • Test
    • View Profile
নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« on: May 21, 2018, 12:22:00 AM »
বিজ্ঞানী সত্যেনন্দ্রনাথ বসুর কথা বলা যাক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকার সময় তার মেয়ে একবার সিনেমা দেখার বায়না ধরেন। সে সময় তিনি জটিল একটি গাণিতিক সমস্যা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এদিকে মেয়ে নাছোড়বান্দা। শেষে মেয়ের জেদের কাছে হার মেনে ঘোড়ার গাড়িতে করে মেয়েকে নিয়ে গেলেন মুকুল সিনেমা হলে। সেখানে পৌঁছে দেখেন তিনি বাসায় টাকা ফেলে এসেছেন। মেয়েকে সেখানে রেখে গাড়োয়ানকে নিয়ে বাসায় ফিরলেন টাকা নিতে।

বাসায় পৌঁছে টাকা নেয়ার সময় টেবিলে দেখেন অসমাপ্ত গাণিতিক সমস্যাটা পড়ে আছে। তখন তিনি মেয়ের কথা ভুলে সেখানেই বসে পড়েন সমস্যা সমাধানে। এদিকে গাড়োয়ান যখন দেখলেন অনেকক্ষণ সময় পার হয়েছে তখন আর অপেক্ষা না করে বাড়িতে ঢুকে পড়লেন। ঢুকে দেখেন, সত্যেন বসু টেবিল-চেয়ারে নিমগ্নভাবে অঙ্ক কষে চলছেন। গাড়োয়ান সত্যেন বসুকে মেয়ের কথা মনে করিয়ে দিলে তিনি সম্বিত ফিরে পান।

এরকম অনেক গল্প আমরা শুনেছি। যেমন আইনস্টাইন হোটেলের ঠিকানা হারিয়ে ফেলেন। আর্কিমিডিস গোসল করতে নেমে স্বর্ণ-খাদের সমস্যা সমাধান খুঁজে পেয়ে দিগম্বর অবস্থায় রাস্তায় বের হয়ে পড়েন “ইউরেকা! ইউরেকা!” চিৎকার করতে করতে।

এ ধরনের মুখরোচক গল্পগুলো মানুষের মুখে মুখে ফেরে। এর কারণ হলো আমরা বিজ্ঞানীদের আত্মভোলা মানুষ হিসেবে ভাবতে পছন্দ করি। তবে বিজ্ঞানীদের এভাবে চিহ্নিত করায় একটা সমস্যা রয়েছে। তারা আসলে আত্মভোলা নন। অনেক সময় বিজ্ঞানীরা গভীর সমস্যা সমাধানে এতোটাই নিমজ্জিত হয়ে যান যে অন্য কোনো কিছুর কথা তাদের মনেই থাকে না। এটাকেই মনস্তত্বে নিমগ্ন-দশা বা flow বলা হয়।

মনোযোগ দেয়ার প্রক্রিয়া

নিমগ্ন দশার কিছু বৈশিষ্ট্য আমাদের চেনা। প্রথমত নিমগ্নতা হলো কোনো কাজে গভীর মনোযোগ দেবার ফলে উৎপন্ন একটি পরিস্থিতি। দ্বিতীয়ত, ঐ কাজটি চ্যালেঞ্জিং। তৃতীয়ত, কাজটির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা প্রয়োজন।

আমরা যখন কোনো বিষয়ে মনোযোগ দেই তখন মস্তিষ্কে কী ঘটে সে প্রক্রিয়া সম্বন্ধে জানা যাক। যখন আমরা ঠিক করি কোনো বিষয়ে মনোযোগ দেব, তখন মস্তিষ্কের মনোযোগ-ব্যবস্থাটি দুটি ধাপে কাজ করে। ধাপ দুটি হলো ইন্দ্রিয়প্রাপ্ত তথ্য বাছাই করে সেখানকার অর্থ উদ্ধার করা। বিস্তারিতভাবে বলতে গেলে-

১) কোনো দৃশ্যপটে যত তথ্য আছে তা চোখের মাধ্যমে মস্তিষ্কে প্রবেশ করে। তথ্যগুলোকে প্রক্রিয়াজাত করে খুঁজতে হয় কী বিষয়ে মনোযোগ দিতে হবে। প্রক্রিয়াটিকে কোনো ঝাপসা ছবির সাথে তুলনা করা যায় যা ধীরে ধীরে পরিস্কার হওয়া শুরু করছে।

২) দ্বিতীয় ধাপটি হলো প্রাপ্ত তথ্যগুলোর একটিমাত্র অংশে মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করা। প্রক্রিয়াটি তুলনা করুন প্রথম ধাপে দেয়া ছবির উদাহরণের সাথে। ঝাপসা ছবিটি পরিস্কার হবার সময় মস্তিষ্ক এর একটি অংশে মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করে অংশটি বিবর্ধিত করতে থাকে। ছবিটির বাকি অংশের তুলনায় ঐ অংশটি অধিক স্বচ্ছ ও বিস্তৃত থাকে।

মনোযোগ প্রক্রিয়াটি ঐচ্ছিক হোক, কিংবা স্বয়ংস্ক্রিয় হোক, উভয় ক্ষেত্রে দুই ধাপে সম্পন্ন হয়। আপনি যখন কোনো বিষয়ের উপর মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করেন তখন চারপাশের পরিবেশ সম্পর্কে আপনার চেতনা বদলে যায়। এসময় চারপাশের ঘটনাগুলো অগ্রাহ্য করার ক্ষমতা বেড়ে যায়।

কিন্তু মনোযোগ ভেঙে যাবার ব্যপারটি কীরকম? মনোযোগ ভেঙে যাবার প্রক্রিয়াও মনোযোগ দেয়ার সাথে যুক্ত। মনোযোগ ভাঙার মূলে রয়েছে একটি প্রাচীন বিবর্তনীয় প্রক্রিয়া। অতর্কিত বিপদে মানুষকে সচেতন করে আত্মরক্ষা করার জন্য এর উৎপত্তি। কোনো কাজে সক্রিয়ভাবে মনোযোগ দিতে সময় ও শ্রম দিতে হয়। অন্যদিকে মনোযোগ ভাঙার প্রক্রিয়াটি মানুষের স্বভাবজাত।

হঠাৎ উজ্জ্বল রঙ বা আলো এবং জোড়ালো শব্দ মনোযোগ ভাঙার জন্য মূল ভূমিকা রাখে। সুদূর অতীতে বুনো জন্তুর গোঙানী বা গাছের ফাঁকে হলুদ রঙের ঝিলিক শিকারী-সংগ্রাহক মানুষকে সতর্ক করে তুলতো। এখনো অ্যাম্বুলেন্স তীক্ষ্ম শব্দ ও লাল-নীল আলোর মাধ্যমে আমাদের সতর্ক করে দেয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, একবার কোনো কারণে মনোযোগ ভেঙে গেলে তা আবার কেন্দ্রীভূত হতে ২৫ মিনিটের মতো সময় লাগতে পারে।অর্থাৎ মনোযোগ দেয়াটা একটি ব্যয়বহুল প্রক্রিয়া। সুতরাং কোনো কাজে মনোযোগ দিতে চাইলে বুদ্ধিমানের কাজ হবে মনোযোগ ভাঙতে পারে এমন জিনিস দূরে রাখা।

যেমন মুঠোফোন বন্ধ বা নীরব করে রাখা। ইন্টারনেট প্রয়োজন না হলে বন্ধ করে রাখা। এমন কোনো জায়গায় কাজ করা যেখানে অন্য কেউ বিরক্ত করার সম্ভাবনা কম। এছাড়া যে টেবিলে কাজ করা হবে সেখানে কাজের জিনিস (বই-পত্র ইত্যাদি) ছাড়া অন্যান্য জিনিসপত্র দূরে সরিয়ে রাখা।

নিমগ্ন দশা এক ধরনের অতি-মনোযোগের ফলে সৃষ্ট অবস্থা। এ সময় আমরা নাওয়া-খাওয়ার কথা ভুলে যাই, সময়জ্ঞান থাকে না। একমাত্র ধ্যানজ্ঞান হয়ে পড়ে হাতের কাজের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা। কাজ করতে তখন অন্যরকম আনন্দ ও উদ্দীপনা পাওয়া যায়।

তবে শুধু মনোযোগী হলেই হবে না। এ দশায় প্রবেশ করতে হলে কঠিন কাজের চ্যলেঞ্জের পাশাপাশি সে কাজ সম্পাদনের জন্য দরকারী দক্ষতাও থাকতে হবে। নিমগ্ন দশার সবচেয়ে বড় বিষয়টি হলো এ সময় কাজকে আর অপ্রিয় মনে হয় না। এ দশাতে কাজ হয়ে যায় উত্তেজনাকর খেলা।

কাজ যখন খেলা

আমরা জীবনে অধিকাংশ কাজ করে থাকি দ্বিতীয় কোনো কাজের উদ্দেশ্যে। আমরা পেশাগত জীবনে যেসব কাজ করি তার প্রধান উদ্দেশ্য থাকে অর্থ উপার্জন। উপার্জিত অর্থ ব্যয় করি নিজের এবং পরিবারের বিভিন্ন প্রয়োজন মেটাতে। নতুন নতুন প্রয়োজন মেটাতে পুনরায় অর্থ উপার্জনের দরকার হয়। তাই জীবিকা নির্বাহের জন্য কাজ করতেই হয়। চক্রটি পুনরায় একইভাবে ঘুরতে থাকে।

শিক্ষার্থীরা অবশ্য সরাসরি জীবিকা নির্বাহের সাথে জড়িত নয়। তবে তাদের লেখাপড়ার অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্যও হলো শিক্ষা শেষে জীবিকা খুঁজে নেয়া। অর্থাৎ আমরা অধিকাংশ সময়েই শুধুমাত্র হাতের কাজটি ‘করা’র খাতিরেই কাজ করি না। কাজ করার পেছনে অন্য দ্বিতীয় একটি উদ্দেশ্য থাকে। এ দ্বিতীয় উদ্দেশ্য আবার তৃতীয় কোনো প্রয়োজন মেটায়। এভাবে একটি কাজের উদ্দেশ্যের সাথে অন্যটির প্রয়োজন যুক্ত থাকে।

এর ব্যতিক্রম হলো খেলা। ছোটবেলায় যখন আমরা খেলতাম, তখন খেলার পেছনে দ্বিতীয় কোনো উদ্দেশ্য থাকতো না। খেলায় প্রতিটি ধাপ, প্রতিটি পদক্ষেপ ও গতিবিধি শুধুমাত্র ঐ মুহূর্তের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার আনন্দ নেয়ার জন্য সম্পাদিত হতো। ছোটরা খেলার মধ্যে একেবারে নিমজ্জিত হয়ে যায়। তাদের একমাত্র লক্ষ্য থাকে ‘খেলা’। খেলার প্রতিটি মুহুর্তে নিঙরে নিঙরে তারা উত্তেজনার আনন্দ লাভ করে।

সেই ছোট্ট আমরা বড় হবার জীবনব্যাপী খেলাটি খেলতে গিয়ে খেলার আনন্দের কথা ভুলে যাই। আমাদের কাজের উদ্দেশ্য হয়ে পড়ে দ্বিতীয় একটি প্রয়োজন সাধন। এই চক্রটি এভাবে চলতেই থাকে।

তবে যখন কোনো দুরূহ কাজ করার দক্ষতা আমাদের থাকে, কাজটাও হয় চ্যালেঞ্জিং ও তাৎপর্যপূর্ণ। তখন আমরা নিজেদের মধ্যে flow অনুভব করি। তখন ঐ কাজে আমরা নিমজ্জিত হয়ে যাই। লাভ করি নিমগ্নতার সুখ। তখন কাজ হয়ে পড়ে খেলা। তখন কাজটা যত কঠিনই হোক না কেন আমরা কোনো ক্লান্তি অনুভব করি না।

নিমগ্নতা একটা চমৎকার অভিজ্ঞতা, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। সমস্যা হলো এই দশায় ইচ্ছে হলেই প্রবেশ করা যায় না। তবে এ পর্যায়ে পৌঁছতে হলে নতুন নতুন কাজ করার দক্ষতা বাড়ানো সম্ভব। কিংবা এমন কোনো দুরূহ কাজ হাতে নেয়া যায়, যা চ্যলেঞ্জিং হলেও সম্পন্ন করার মতো যোগ্যতা কারো রয়েছে। অর্থ-বিত্ত ইত্যাদির পেছনে না ছুটে এরকম চ্যালেঞ্জিং কাজে যোগ্য হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলা জীবনে আনন্দময় সুখ লাভের নিশ্চিত উপায় হতে পারে।

নিমগ্নতা আমাদের দ্বিতীয় শৈশবে ফিরিয়ে নিতে পারে।
Md. Rakib Hasan
Lecturer
Dept. of Computer Science & Engineering
Daffodil International University
102, Sukrabad, Mirpur Rd, Dhanmondi, Dhaka 1207, Bangladesh

Offline murshida

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1154
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #1 on: May 21, 2018, 10:51:43 AM »
 :)

Offline Nusrat Jahan Bristy

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 482
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #2 on: May 21, 2018, 12:24:07 PM »
 :)
Lecturer in GED

Offline rakib.cse

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 92
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #3 on: May 23, 2018, 08:35:42 PM »
 :)
Md. Rakib Hasan
Lecturer
Dept. of Computer Science & Engineering
Daffodil International University
102, Sukrabad, Mirpur Rd, Dhanmondi, Dhaka 1207, Bangladesh

Offline masudur

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 164
  • I love teaching.
    • View Profile
    • Visit my website
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #4 on: May 24, 2018, 04:15:20 PM »
 :) :) :)
Mohammad Masudur Rahman,
Lecturer,
Department of Computer Science and Engineering,
Faculty of Science and Information Technology,
Daffodil International University,
Daffodil Tower,
4/2, Sobhanbag, Mirpur Road,
Dhanmondi, Dhaka-1207.

Offline murshida

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1154
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #5 on: May 26, 2018, 02:10:43 PM »
 :)

Offline masudur

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 164
  • I love teaching.
    • View Profile
    • Visit my website
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #6 on: May 26, 2018, 02:24:49 PM »
চমৎকার পোস্ট।
Mohammad Masudur Rahman,
Lecturer,
Department of Computer Science and Engineering,
Faculty of Science and Information Technology,
Daffodil International University,
Daffodil Tower,
4/2, Sobhanbag, Mirpur Road,
Dhanmondi, Dhaka-1207.

Offline murshida

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1154
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #7 on: May 27, 2018, 03:08:23 PM »
 :)

Offline Nusrat Jahan Bristy

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 482
  • Test
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #8 on: May 28, 2018, 09:04:46 AM »
 :)
Lecturer in GED

Offline Mousumi Rahaman

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 827
  • Only u can change ur life,No one can do it for u..
    • View Profile
Re: নিমগ্নতা, কাজ ও খেলা
« Reply #9 on: June 03, 2018, 11:21:22 PM »
good one...
Mousumi Rahaman
Lecturer
Dept. Textile Engineering
Faculty of Engineering
Daffodil International University