Author Topic: ঈর্ষা: একটি মানসিক প্রতিবন্ধকতা  (Read 74 times)

Offline Sahadat Hossain

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 221
  • Test
    • View Profile
ঈর্ষা অপর্যাপ্ততার অনুভূতি থেকেও জন্মায়, যদিও তারা ঈর্ষার চেয়ে বেশি সচেতন হিংসায়। যাইহোক, যখন ঈর্ষা হচ্ছে অন্য কারো যা আছে তা ভোগ করার ইচ্ছা, হিংসা আমাদের যা হারানোর ভয় তা তৈরী করে। আমরা আমাদের নিকটবর্তী কারো মনোযোগ বা অনুভূতি হারাতে দুর্বল বোধ করি। এটি সন্দেহের কারণে অথবা প্রতিদ্বন্দ্বিতা বা অবিশ্বস্ততার ভয়ের কারণে মানসিক অস্বস্তিকর রূপে সংজ্ঞায়িত করা হয় এবং আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বীকে আমরা যা চাই তা নিয়ে ঈর্ষাও থাকতে পারে। অবিশ্বস্ততা নিরুৎসাহিত করে আমাদেরকে , অতীতের জীবাণুগুলি, পিতামাতার অনিশ্চিততা, এবং পরিবারের সততা বজায় না রাখার জন্য তৈরী হয় হিংসা। কিন্তু সম্পর্কের মধ্যে এটি একটি ধ্বংসাত্মক শক্তি হতে পারে - এমনকি প্রাণঘাতী।
ঈর্ষা সৌন্দর্য, সাফল্য, বা প্রতিভা যেমন কারো, সম্পত্তি, বা বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে অসন্তুষ্টি বা লোভ হয়, যখন আমরা কিছু সম্মাননায় অন্যের চেয়ে কম মনে করি। এমনকি ঈর্ষান্বিত ব্যক্তি উচ্চতর প্যারালাইসিস হতে পারে। একজন ঈর্ষাকৃত মানুষ ক্ষতি করতে পারে নিজেকে ও অন্যকে তাতে তার সুনাম অর্জন তো হয় না বরং নিজের ও অন্যের কাছে ছোট হয়ে যায়।
ঈর্ষান্বিত ব্যক্তি সামান্য বিষয়ে সীমাবদ্ধ থাকে না, তবে এটি যেমন বন্ধুদের, খ্যাতি, সৌন্দর্য, কুমারীত্ব ইত্যাদি বিষয়গুলিতেও বাড়তে পারে। বর্তমান যুগে ঈর্ষা ও হিংসা দুটি পরস্পর কাজ করে বিশেষ করে সামাজিক মাধ্যম গুলোতে যেমন আপন মানুষগুলোর অযথা ভুলবুঝাবুঝি যার কারণ হচ্ছে ঈর্ষা, আপন মানুষ কেউ ভালো কিছু করলে তার মূল্যায়ন না করে তাকে নিয়ে ঈর্ষা করা, বিভিন্ন কমেন্ট বা ডিসলাইক এর মাধ্যমে নিজের ভিতর ঈর্ষা পরিমান বাড়িয়ে খারাপ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া, প্রতিশোধপরায়ণতা কথায় ও কাজে প্রমান করা ইত্যাদি। এই জিনিসগুলো আর যাই করুন মানুষের মধ্যে আরো রোগ বাড়িয়ে সামাজিকতা, আত্মীয়তা ও পারস্পরিক সুন্দর সম্পর্ক নষ্ট করে ফেলে। এর মানে হিংসা/ ঈর্ষা মানুষের সম্পর্ক থেকে অনেক বড় একটা বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। খুব আজব লাগছে শুনতে অথচ আমরা প্রতিনিয়ত তাই করে বেড়াচ্ছি।
ঈর্ষা সব মানুষের দ্বারা প্রদর্শিত একটি আবেগ। আপনার বন্ধু ভালো খাচ্ছে, চলছে আপনার ভালো লাগবে না। এমন কিছু মানুষ জেক আপনি চেনেন না কিন্তু তার সাজ, চেহারা, কথা বলার সুন্দর ভঙ্গি আপনার কাছে ঈর্ষার কারণ হতে পারে। খুব কাছের মানুষ যার সাথে আপনার কোনো সমস্যা হয় নাই কিন্তু আপনি তাকে তার সফলতার জন্য সহ্য করতে পারছেন না বা কোনো অনুষ্ঠানে তার সাথে আপনি কথা বলবেন না অথবা তার পাশে বসবেন না এটা হচ্ছে ঈর্ষা। যা আপনার সাথে মানুষের সম্পর্ক নষ্ট করার জন্য দায়ী।
ঈর্ষা থেকে বেঁচে থাকার কিছু উপায় :
১. নিজেকে অন্যদের তুলনা করা বন্ধ করুন যাতে আপনি নিকৃষ্ট বোধ করবেন না। আপনি কীভাবে দেখেন এবং অন্যদের কাছে আপনার সাফল্যের স্তরটি ক্রমাগত তুলনা করেন, তাহলে আপনি কোনও কারণে অন্য ব্যক্তির প্রতি বিরক্ত হবেন । মনে রাখবেন যে আপনি কেবল যা দেখতে পান তা বাইরের দিকএবং আপনি জানেন না যে অন্য ব্যক্তি জীবনে কীভাবে কাজ করছে। অন্যের কাছে যা আছে তা কামনা করার পরিবর্তে, আপনার নিজের সাফল্যের জন্য কৃতজ্ঞ থাকুন এবং আপনার লক্ষ্য অর্জনে মনোযোগ দিন।
২. যখন আমাদের মনে হয় যে আমাদের কিছু অভাব রয়েছে অথবা আমরা এমন কিছু হারানোর ভয় আছে যা আমরা মূল্যবান বলে মনে করি, তখন ঈর্ষা বেড়ে যায়। অবশ্যই, আমরা সবাই বেশি মনোযোগ চাই, আরো অর্থ, আরো নিরাপত্তা এবং আরো অনেক কিছু কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে যে এই জিনিস গুলো আপনাকে একজন ব্যক্তির হিসাবে সংজ্ঞায়িত করে না। হীনমন্যতা ও গর্ব রেখে আপনার যা কিছু আছে তা নিয়ে সুখী থাকুন ।
৩. যখনই আপনি ঈর্ষান্বিত হন, আয়নাটি দেখুন এবং আপনি কি সুন্দর প্রাণী দেখতে পান। আপনাকে অবশ্যই বুঝতে হবে যে আপনার কাছে এমন কিছু রয়েছে যা অন্যান্য ব্যক্তিদের কাছে হয়তো নেই । জীবনের বিভিন্ন পথে হাঁটতে থাকা লোকেরা আপনার জীবন, আপনার সুন্দর চেহারা, আপনার প্রতিভা এবং আরও অনেক কিছু পেতে আগ্রহী হতে পারে।
৪. সফল মানুষের কর্মগুলো মূল্যায়ন করুন তাদের বলুন যে আপনি ভালো করছেন। এই এতটুকু কথা হয়তো তার কাজে আসবে কিনা জানি না তবে আপনার মনোভাবে বিশাল পরিবর্তন আনবে যা দ্বারা আপনি উপকৃত হবেন।
বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ মানুষ খুব অভিমানী প্রাণী অপরদিকে মানুষ খুব অনুকরণপ্রিয়। আপনার যদি মনে হয় অন্যের সফলতা আপনার উপকারে আসবে আপনি তাকে সম্মান করুন ও কিভাবে সে সম্মানিত করেছে সেটা দেখুন। আর যদি আপনি নিজে কিছু করতে চান তাহলে আপনি সবার আগে নিজেকে যাচাই করুন কারণ আপনি নিজেই উন্নত ও অনন্য।

----বিদিতা রহমান, প্রাক্তন শিক্ষার্থী, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।
Md.Sahadat Hossain
Asst. Administrative Officer
Office of the Director Administration & Alumni Cell
Daffodil Tower(DT)- 4
102/1, Shukrabad, Mirpur Road, Dhanmondi.
Email: alumni.office@daffodilvarsity.edu.bd
Cell & WhatsApp: 01847027549