Author Topic: নাসায় চাকরি: আপনিও যেভাবে হতে পারেন নাসার কর্মী  (Read 337 times)

Offline 710001113

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 469
  • None of your business
    • View Profile
By Sanjana S Payel
ন্যাশনাল এরোনটিকস এন্ড স্পেস এডমিনিস্ট্রেশপ্ন বা নাসা (NASA)-তে চাকরি পাওয়া অনেকের কাছেই স্বপ্নের মতো। এখানে চাকরি পাবার জন্য কী কী যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন তা জানা থাকলে হয়তো সত্যি হতে পারে আপনার স্বপ্ন। আপনিও হয়তো আবেদন করতে পারবেন। তাই নাসায় চাকরি করার যোগ্যতা এবং চাকরি পেয়ে গেলেও পরবর্তীতে তা চালিয়ে যেতে পারবেন কিনা এসব খুঁটিনাটি বিষয় নিয়েই আমাদের এই আয়োজন।

নাসায় বিভিন্ন রকম মানুষ কাজ করেন একসাথে; Source: asc-csa.gc.ca
নাসা আসলে মহাকাশচারী ছাড়াও আরো অনেক ক্ষেত্রে চাকরি দিয়ে থাকে। এখানে একইসাথে বিজ্ঞানী, প্রকৌশলী, মানবসম্পদ বিশেষজ্ঞ, হিসাবরক্ষক, প্রযুক্তিবিদ এবং আরো নানা শ্রেণীর মানুষ একত্রে কাজ করে থাকেন। তারা একের পর এক গ্রহ-নক্ষত্র সহ অনেক অজানা তথ্য সংগ্রহে নিরলস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাই তাদের বাছাইয়ের ধরণও ভিন্ন হয়ে থাকে।
আবেদন করার নিয়ম
নাসায় আবেদন করার জন্য আপনাকে প্রথমে ইউএসএ জবস-এ একাউন্ট খুলতে হবে। এখানে একাউন্ট খুলে আপনার জীবন বৃত্তান্ত জমা দিন। এখানে জীবন বৃত্তান্ত জমা করার পর আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে এটি নাসায় জমা দেবার জন্য উপযুক্ত হয়েছে কিনা। কারণ সাধারণ নিয়মে লেখা জীবনবৃত্তান্ত নাসা থেকে গ্রহণ করা হয় না। আপনাকে অবশ্যই ইউএসএ জবস-এ একটি একাউন্ট করে ওখান থেকেই জীবনবৃত্তান্ত লিখার নিয়ম জেনে নিতে হবে। এই নিয়মে লেখা জীবন বৃত্তান্ত আপনাকে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য সংস্থায় আবেদন করতেও সহায়তা করবে।

নাসার একটি গবেষণাগার; Source: jsc.nasa.gov
জীবনবৃত্তান্ত জমা করার পর ওখানে আপনার নামে একটি প্রোফাইল তৈরি হবে। তারপর আপনি এই লিংকে (nasai.usajobs.gov) গিয়ে খুঁজে নিতে পারবেন উক্ত প্রোফাইল থেকে আপনি কোন ধরনের চাকরির জন্য নাসায় আবেদন করতে পারবেন অথবা আদৌ পারবেন কিনা? যখন আপনি কোনো চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন, তখন প্রথমেই পড়ে নিন সেখানে কী কী শর্ত দেয়া আছে। নিজের জীবন বৃত্তান্তের সাথে মিলিয়ে নিন আপনি সবগুলো যোগ্যতা রাখছেন কিনা। আরো পড়ুন সেখানে কাজ পাবার পর আপনাকে কী কী দায়িত্ব পালন করতে হবে এবং কী কী প্রশিক্ষণ আপনাকে নিতে হতে পারে? সবগুলো শর্ত মিলে গেলে সাবধানতার সাথে ফর্ম পূরণ করুন। এখানে ছোট একটি ভুলের জন্য আপনার হাত ফসকে সাধের চাকরিটা ছুটেও যেতে পারে। আপনার পূরণ করা ফর্মটি পাঠিয়ে দেয়া হবে নাসা স্টার্স-এ।
নাসা স্টার্স-এ আপনার ফর্ম চলে গেলে আপনাকে একটি অনলাইন বাটন দেখানো হবে। সেখানে আপনি ‘অ্যাপ্লাই’ বাটনে ক্লিক করলেই স্ক্রিনে কিছু নির্দেশনা দেখাবে। এই নির্দেশনা ভালোভাবে পড়ে নিন। সেখানে আপনার জন্য কিছু প্রশ্ন রাখা হবে যার উত্তরের মাধ্যমে আপনাকে যাচাই করা হবে।
প্রশ্নোত্তর ধাপ শেষ হলেই আপনাকে বলা হবে আরেকবার আবেদনপত্রটি দেখে নেয়ার জন্য। যদি আপনি সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার পদের জন্য আবেদন করে থাকেন তাহলে আপনাকে এক্সিকিউটিভ বিভাগে আপনার যোগ্যতা এবং প্রযুক্তিগত যোগ্যতা সম্পর্কে কিছু কথা তুলে ধরতে বলা হবে। সরাসরি আবেদনপত্রে কথাগুলো লেখার আগে নিজে নিজে আলাদা কোথাও কথা গুছিয়ে নেয়া ভালো।
আবেদনপত্রের কোনো অংশ বাদ থেকে গেল কিনা ভালোভাবে দেখে নিন। কারণ কোনো একটি ঘর পূরণ না করে থাকলে আপনার পুরো আবেদনপত্রটি বাতিল হয়ে যেতে পারে। আবেদনপত্র জমা করে দেয়া হলে আপনাকে পুনরায় ইউএসএ জবস-এ নিয়ে যাওয়া হবে। এখান থেকে আপনি নাসা থেকে ফিরতি জবাব দেখতে পারবেন।
 

মহাকাশচারী প্রশিক্ষণ; Source: esa.int
নাসায় প্রায় আঠারো হাজারেরও বেশি মানুষ কাজ করে থাকে। এখানে ছাত্র-ছাত্রী থাকা অবস্থায়ও আবেদন করা সম্ভব। নাসায় একইসাথে কাজ এবং পড়াশোনা চালিয়ে যাবার মতো বিভিন্ন কাজ করার সুযোগ রয়েছে। যারা মহাকাশচারী হবার স্বপ্ন দেখছেন তাদের জন্য রয়েছে বিশেষ কিছু নিয়মাবলী।
চিকিৎসাশাস্ত্রে নাসায় কাজ করার সুযোগ তুলনামূলকভাবে খুব বেশিই কঠিন। কারণ এখানে পদসংখ্যা কম থাকে। নাসা সাধারণত নিজেরাই বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে চিকিৎসক বেছে নিয়ে থাকে। যারা বিশেষভাবে শুধুমাত্র প্রযুক্তিবিদ্যার বিভাগে কাজ করতে চান তাদের জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষাগত যোগ্যতা নিম্নরূপ
বৈমানিক প্রকৌশলবিদ্যা (Aeronautical Engineering)
বিমানচালনাবিদ্যা- Aeronautics)
শিল্প প্রকৌশল- Industrial Engineering
এরোস্পেস ইঞ্জনিয়ারিং- Aerospace Engineering
ম্যাটেরিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং- Materials Engineering
ম্যাটেরিয়াল সায়েন্স- Materials Science
এস্ট্রোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং- Astronautical Engineering
এস্ট্রোনটিকস- Astronautics
গণিত কিংবা ফলিত গণিত- Mathematics, Applied or Pure
জ্যোতির্বিদ্যা Astronomy
ভূপদার্থবিদ্যা Geophysics
যন্ত্রবিদ্যা- Mechanics, Applied or Engineering
জ্যোতিঃপদার্থবিদ্যা- Astrophysics
যন্ত্র প্রকৌশল- Mechanical Engineering
জৈব চিকিৎসা প্রকৌশল- Biomedical Engineering
ধাতু প্রকৌশল- Metallurgical Engineering
সিরামিক ইঞ্জিনিয়ারিং- Ceramic Engineering
ধাতুবিদ্যা- Metallurgy
সিরামিকস- Ceramics
আবহবিদ্যা- Meteorology
কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং- Chemical Engineering
নিউক্লিয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং- Nuclear Engineering
রসায়ন- Chemistry
পারমাণবিক প্রকৌশল পদার্থবিদ্যা- Nuclear Engineering Physics
সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং- Civil Engineering
সমুদ্রবিদ্যা- Oceanography
কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং- Computer Engineering
আলোক প্রকৌশল- Optical Engineering
কম্পিউটার বিজ্ঞান- Computer Science
পদার্থবিদ্যা- Physics
ভূবিজ্ঞান ও গ্রহ বিজ্ঞান- Earth and Planetary Science
ফলিত পদার্থবিদ্যা কিংবা প্রকৌশল পদার্থবিদ্যা- Physics, Applied or Engineering
তড়িৎ প্রকৌশল- Electrical Engineering
ইলেকট্রনিক প্রকৌশল- Electronics Engineering
মহাকাশ বিজ্ঞান- Space Science
স্ট্রাকচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং- Structural Engineering
ভূতত্ত্ব- Geology
ওয়েল্ডিং ইঞ্জিনিয়ারিং- Welding Engineering
এছাড়া প্রতিযোগিতামূলক কিছু পরীক্ষায় পাস করতে হবে। বিমানচালনা বিদ্যা, মহাকাশ স্টেশন, সৌরপ্রক্রিয়া, তথ্যপ্রযুক্তি, পৃথিবী ও বিভিন্ন গ্রহমণ্ডলী সম্পর্কে নব-আবিষ্কৃত তথ্য ইত্যাদি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা থাকতে হবে। চোখের দৃষ্টিশক্তি স্বাভাবিক থাকার পাশাপাশি রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকা, উচ্চতা ৫ ফুট ২ ইঞ্চি থেকে ৬ ফুট ৩ ইঞ্চি পর্যন্ত হওয়া ইত্যাদি বিষয়কে প্রাধান্য দেওয়া হয়।
নাসায় আবেদনপত্র, শারীরিক যোগ্যতা, সাক্ষাৎকার ইত্যাদি ধাপ পেরিয়ে গেলেও চাকরি সুনিশ্চিত হয় না। এখানে প্রায় দুই বছর বিভিন্ন রকম প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে যেতে হয় এবং এখানে পাস করে গেলেই তবেই চাকরি পেয়ে গিয়েছেন বলা চলে।

নাসায় দেয়া হয় বিভিন্ন রকম প্রশিক্ষণ; Source: investigate-nasa.com
নাসার মতো একটি নির্ভরযোগ্য সংস্থায় চাকরি পাওয়া বেশ কঠিন এবং প্রতিযোগিতামূলক। প্রতিবারই একেকটি পদের জন্য প্রায় ১,০০০ থেকে ১,২০০ মানুষ আবেদন করে থাকে। সবাইকে ছাপিয়ে নিজ যোগ্যতায় সেখানে টিকে যাওয়াটা কিছুটা ভাগ্যের ব্যাপারও বলা চলে। এমনকি সমস্ত পরীক্ষা পেরিয়ে এসেও দুই বছর ট্রেনিংয়ে টিকে থাকতে পারে না অনেকে।

বায়ুশূন্য স্থানের প্রশিক্ষণ; Source: asd.gfsc.nasa.gov
নাসার বেতন
নাসায় যারা চাকরি করে থাকেন তাদের বাৎসরিক বেতন সাধারণত ৬০ হাজার হতে ১ লাখ ডলারেরও বেশি হয়ে থাকে। যারা অনেকদিন ধরে চাকরি করছেন তাদের বেতন বাৎসরিক এক কোটি ডলারও ছাড়িয়ে যায়। চাকরির ক্ষেত্রে একটিই প্রধান শর্ত। আপনি আর কখনো কোনো বই লিখতে পারবেন না এবং জনসম্মুখে কখনো কোনো বক্তব্য রাখতে পারবেন না। বিশেষ কিছু গোপনীয়তা রক্ষার স্বার্থেই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়ে থাকে।

পৃথিবীর বাহিরে নাসার পৃথিবী; Source: nasa.gov
সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আর অপেক্ষা কীসের? যদি বিশ্বব্রহ্মাণ্ড হয়ে থাকে আপনার স্বপ্নের রাজ্য তাহলে গড়ে তুলুন নিজেকে সেভাবেই। আবেদন করুন নাসায়। পেয়েও যেতে পারেন নাসায় কাজ করার সুযোগ। নাসায় কাজ করার জন্য প্রতিনিয়ত চোখ রাখতে পারেন নাসার ওয়েবসাইটে (nasa.gov)। তারা সাধারণত তাদের কাজ, উদ্দেশ্য এবং লোকবল সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দিয়ে থাকে যা আপনার মনোবলকে আরো শক্ত করবে।