Author Topic: জীবন বাঁচাতে প্রশিক্ষণ  (Read 81 times)

Offline monirulenam

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 287
  • Test
    • View Profile
চকবাজার ও বনানীর ভয়াবহ অগ্নিদুর্ঘটনা, রানা প্লাজার ভবনধস, চট্টগ্রাম ও পার্বত্য জেলাগুলোতে ভূমিধসসহ সিডরের মতো ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে প্রচুর প্রাণহানি ও অপূরণীয় ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অথচ অধিকাংশ মানুষ জানে না আগুন লাগলে কী করণীয়, ধোঁয়ায় আটকা পড়লে কী করতে হয়, বন্যায় কিংবা ঝড়-জলোচ্ছ্বাসে কী করা উচিত। এসব দুর্যোগের শিকার যাঁরা হয়েছেন এবং স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে যাঁরা কাজ করেছেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা–বিষয়ক প্রশিক্ষণ যদি তাঁদের থাকত তাহলে প্রাণহানি–দুর্ঘটনা অনেক কম হতো।

এমন ভাবনা থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা–বিষয়ক সংগঠন ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবেশ সংসদ’–এর জন্ম। সংগঠনটি ‘দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশগত নিরাপত্তা’ শিরোনামে তিন মাস মেয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু করে ২০১১ সালে। এ পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ১০০ জনকে এই কর্মশালার মাধ্যমে হাতে–কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

যেভাবে শুরু
ঘূর্ণিঝড় সিডর আঘাত হানার পর আক্রান্ত এলাকায় গিয়ে ত্রাণ ও প্রয়োজনীয় সেবাদান কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন শাহীন রেজা। তখনই বিষয়টি নিয়ে ভাবতে শুরু করেন তিনি। বাংলাদেশে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়টিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা বিভাগ হিসেবে পড়ানো হলেও খুব সীমিত শিক্ষার্থী এসব জায়গায় পড়ার সুযোগ পান। তাহলে দেশের বিশাল একটি অংশ কি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে জানার বা প্রশিক্ষণ নেওয়ার সুযোগ পাবে না? এমন ভাবনা থেকেই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। বর্তমানে তিনি এই সংগঠনের নির্বাহী উপদেষ্টা।

 ‘পত্রিকা পড়ে জেনেছিলাম, এ দেশে মাত্র ৮ মাত্রার ভূমিকম্প হলেই ৭০ হাজার ভবন ধসে যাওয়ার আশঙ্কা আছে। এত বড় দুর্যোগে কে কার পাশে এসে দাঁড়াবে? কীভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে? এই ভাবনা থেকে আমরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার কার্যক্রম শুরু করি।’ বলছিলেন শাহীন রেজা। ২০১০ সালের ৭ নভেম্বর দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে মাত্র এক দিনের জন্য তাঁদের প্রথম কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছিল। ৬০ আসনক্ষমতার মিলনায়তনে ৭৫ আগ্রহী ব্যক্তি অংশ নেন। সংগঠনটিকে এগিয়ে নেওয়ার উৎসাহ পান কর্মীরা।

Eprothom Alo২০১১ সালের ৫ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে সংগঠনটি। প্রথম দফায় কর্মী হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন প্রায় ৪০০ শিক্ষার্থী। কর্মশালার মেয়াদ তিন মাস। তিন ঘণ্টা করে মোট ১২টি ক্লাস। ফেসবুকের নিজেদের পেজের মাধ্যমে, রাস্তায় পোস্টার লাগিয়ে, লিফলেট বিতরণ করে দিনক্ষণ জানানো হয়। নিবন্ধনের সুযোগ থাকে কর্মশালার আগের দিন পর্যন্ত। প্রশিক্ষণ শেষে মূল্যায়ন পরীক্ষা নেওয়া হয় এবং সনদ প্রদান করা হয়। মিলনায়তন ভাড়া ও প্রশিক্ষকদের সম্মানী দেওয়ার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা এবং অন্য যেকোনো ব্যক্তির কাছ থেকে নেওয়া হয় ২ হাজার টাকা।

যে প্রশিক্ষণ সবার জন্য

ক্লাসের মধ্য দিয়ে কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী ব্যক্তিদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও পরিবেশ রক্ষা বিষয়ে মৌলিক ও প্রায়োগিক ধারণা দেওয়া হয়। বিভিন্ন কৌশল শেখানো হয়। যেমন দুর্যোগে কীভাবে আত্মরক্ষা করতে হয়, অন্যদের সহযোগিতা বা উদ্ধার করতে হয়, দুর্যোগ–পরবর্তী কাজ কীভাবে পরিচালনা করতে হয়, প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা কীভাবে দিতে হয় ইত্যাদি। কর্মশালায় অংশ নিতে পারেন যেকোনো পেশার, যেকোনো প্রতিষ্ঠানের মানুষ। কোর্সে অংশ নেওয়ার প্রাথমিক যোগ্যতা—লিখতে ও পড়তে জানতে হবে।

শুরু থেকে এখন পর্যন্ত মোট ১০টি কর্মশালা সংগঠনটি পরিচালনা করেছে। এর মধ্যে যেমন বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, তৈরি পোশাক ব্যবসায়ী, এনজিওকর্মী, স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা আছেন, তেমনি আছেন বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকসহ নানা ধরনের মানুষ। প্রশিক্ষক হিসেবে এখানে আমন্ত্রণ জানানো হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষক, ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশিক্ষক, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বিশেষজ্ঞ, আন্তর্জাতিক নানা সংস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশিক্ষকসহ বিশেষজ্ঞদের। এ ছাড়া ‘এনভায়রনমেন্টাল ডিজাস্টার অ্যান্ড পসিবল মিটিগেশন অ্যান্ড অ্যাডাপটেশন মেজারস’ শিরোনামে বেশ কিছু এক দিনের কর্মশালা আয়োজন করেছে এই সংগঠন। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ১ হাজার ২০০ ছাত্রছাত্রীকে ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষকেরা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। প্রশিক্ষিত কর্মীরা তাঁদের নিজ নিজ জায়গায় থেকে সচেতনতা তৈরির কাজ করছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক মো. হুমায়ুন কবির শুরু থেকে ৯টি কর্মশালায় প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন। তিনি বলেন, ‘প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া বিভিন্ন বয়সের শিক্ষার্থী সমাজের বিপদগ্রস্ত মানুষের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য নিজেদের প্রশিক্ষিত করতে চান, এটা একটা দারুণ ব্যাপার। এই কর্মশালা সত্যিই কাজের। সমাজের সব মানুষের এই হাতে–কলমে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে এমন কাজে অংশ নেওয়া উচিত।’

বিজিএমইএর (বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারিং ও এক্সপোর্টিং অ্যাসোসিয়েশন) সহকারী সচিব শেখ মোহাম্মদ সাঈদ এবং তাঁর ছেলে একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে কর্মরত শেখ মো. সাদিকুল ইসলাম—দুজনই ছিলেন এই কর্মশালার শিক্ষার্থী। বাবা বলেন, ‘আশুলিয়ার বয়লার বিস্ফোরণের সময় ও কাফরুলের গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে আগুন লাগলে সাহায্যের জন্য ছুটে গেছি। এই কর্মশালা থেকে পাওয়া অনেক কৌশল প্রয়োগ করতে পেরেছি। প্রত্যেক শিক্ষার্থী এই কর্মশালা থেকে উপকৃত হয়েছেন, তাই সবার এই প্রশিক্ষণ নেওয়া জরুরি।’ ছেলে সাদিকুল ইসলাম বলেন, ‘সরাসরি উদ্ধারকাজে অংশ নিতে না পারলেও আমি সবাইকে সচেতন করতে চেষ্টা করি।’

               


সংগৃহীত

Offline masud.ce@diu.edu.bd

  • Newbie
  • *
  • Posts: 21
  • Test
    • View Profile
Re: জীবন বাঁচাতে প্রশিক্ষণ
« Reply #1 on: April 09, 2019, 04:49:22 PM »
Informative. Thanks for sharing.

Offline sanjida.dhaka

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 214
    • View Profile
Re: জীবন বাঁচাতে প্রশিক্ষণ
« Reply #2 on: April 11, 2019, 02:22:23 PM »
Good post