Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - azharul.esdm

Pages: 1 [2] 3 4 ... 6
16
Children as young as eight, working in the tanneries of Bangladesh producing leather that is in demand across Europe and the USA, are exposed to toxic chemical cocktails that are likely to shorten their lives, according to a new report.

Approximately 90% of those who live and work in the overcrowded urban slums of Hazaribagh and Kamrangirchar, where hazardous chemicals are discharged into the air, streets and river, die before they reach 50, according to the World Health Organisation.


The river runs black: pollution from Bangladesh's tanneries – in pictures
 View gallery
Their plight spurred the volunteer doctors of Médecins Sans Frontières (MSF) to set up clinics in the area to diagnose and treat those who are the victims of their workplace. It is, says a paper published in BMJ Case Reports, “the first time they have intervened in an area for reasons other than natural disasters or war”.

MSF’s intervention was triggered by “the widespread industrial negligence and apathy of owners of tanneries and other hazardous material factories” towards the more than 600,000 largely migrant population who have no access to government-funded healthcare.

17
Galaxy Zoo began with a call for volunteers to help classify distant galaxies in space telescope images. The collaborative project made spectacular discoveries, spawning a family of similar projects - collectively known as the Zooniverse. We look back on 10 years of a citizen science phenomenon.
It started with a strange blue smudge on a computer screen.
Now that mysterious blob, spotted by a Dutch primary school teacher during a few idle hours one evening, has become one of the most remarkable recent discoveries in astronomy.
Hanny's Voorwerp, named after its discoverer Hanny van Arkel, is providing scientists with a striking new window on the universe.
They have found these distant clouds of glowing gas provide a kind of time capsule that can reveal what their neighbouring galaxies have been doing in the previous few thousand years.
For Miss van Arkel, it is fitting for the object that now bears her name to be providing such insights - it marks 10 years since she first encountered it during her summer break from teaching.
She had been taking part in a citizen science project called Galaxy Zoo, which asked members of the public to classify different types of galaxies from images taken by robotic telescopes.

18
Informative but we need to manage plastics.

20
Thanks Mam for publishing this.

22
Using a combination of fossils and chemical markers, scientists have tracked how a period of globally low ocean-oxygen turned an Early Jurassic marine ecosystem into a stressed community inhabited by only a few species.

The research was led by Rowan Martindale, an assistant professor at The University of Texas at Austin Jackson School of Geosciences, and published in print in Palaeogeography, Palaeoclimatology, Palaeoeconology on July 15. The study was co-authored by Martin Aberhan, a curator at the Institute for Evolution and Biodiversity Science at the Natural History Museum in Berlin, Germany.

The study zeroes in on a recently discovered fossil site in Canada located at Ya Ha Tinda Ranch near Banff National Park in southwest Alberta. The site records fossils of organisms that lived about 183 million years ago during the Early Jurassic in a shallow sea that once covered the region.
The fossil site broadens the scientific record of the Toarcian Oceanic Anoxic Event, a period of low oxygen in shallow ocean waters which is hypothesized to be triggered by massive volcanic eruptions. The Oceanic Anoxic Event was identified at this site by the geochemical record preserved in the rocks. These geochemical data were collected in a previous research project led by Benjamin Gill and Theodore Them of Virginia Tech. The oxygen level of the surrounding environment during the Early Jurassic influences the type and amount of carbon preserved in rocks, making the geochemical record an important method for tracking an anoxic event.

"We have this beautiful geochemical record that gives us a backbone for the timing of the Oceanic Anoxic Event," said Martindale, a researcher in the Jackson School's Department of Geological Sciences. "So with that framework we can look at the benthic community, the organisms that are living on the bottom of the ocean, and ask 'how did this community respond to the anoxic event?"

The fossils show that before the anoxic event, the Ya Ha Tinda marine community was diverse, and included fish, ichthyosaurs (extinct marine reptiles that looked like dolphins), sea lilies, lobsters, clams and oysters, ammonites, and coleoids (squid-like octopods). During the anoxic event the community collapsed, restructured, and the organisms living in it shrunk. The clams that were most abundant in the community before the anoxic event were completely wiped out and replaced by different species.

23
Scientists have identified patterns in Earth's magnetic field that evolve on the order of 1,000 years, providing new insight into how the field works and adding a measure of predictability to changes in the field not previously known.

The discovery also will allow researchers to study the planet's past with finer resolution by using this geomagnetic "fingerprint" to compare sediment cores taken from the Atlantic and Pacific oceans.

Results of the research, which was supported by the National Science Foundation, were recently published in Earth and Planetary Science Letters.

The geomagnetic field is critical to life on Earth. Without it, charged particles from the sun (the "solar wind") would blow away the atmosphere, scientists say. The field also aids in human navigation and animal migrations in ways scientists are only beginning to understand. Centuries of human observation, as well as the geologic record, show our field changes dramatically in its strength and structure over time.
Yet in spite of its importance, many questions remain unanswered about why and how these changes occur. The simplest form of magnetic field comes from a dipole: a pair of equally and oppositely charged poles, like a bar magnet.

"We've known for some time that Earth is not a perfect dipole, and we can see these imperfections in the historical record," said Maureen "Mo" Walczak, a post-doctoral researcher at Oregon State University and lead author on the study. "We are finding that non-dipolar structures are not evanescent, unpredictable things. They are very long-lived, recurring over 10,000 years -- persistent in their location throughout the Holocene.

"This is something of a Holy Grail discovery," she added, "though it is not perfect. It is an important first step in better understanding the magnetic field, and synchronizing sediment core data at a finer scale."

Some 800,000 years ago, a magnetic compass' needle would have pointed south because Earth's magnetic field was reversed. These reversals typically happen every several hundred thousand years.

While scientists are well aware of the pattern of reversals in Earth's magnetic field, a secondary pattern of geomagnetic "wobble" within periods of stable polarity, known as paleomagnetic secular variation, or PSV, may be a key to understanding why some geomagnetic changes occur.
Earth's magnetic field does not align perfectly with the axis of rotation, which is why "true north" differs from "magnetic north," the researchers say. In the Northern Hemisphere this disparity in the modern field is apparently driven by regions of high geomagnetic intensity that are centered beneath North America and Asia.

"What we have not known is whether this snapshot has any longer-term meaning -- and what we have found out is that it does," said Joseph Stoner, an Oregon State University paleomagnetic specialist and co-author on the study.

When the magnetic field is stronger beneath North America, or in the "North American Mode," it drives steep inclinations and high intensities in the North Pacific, and low intensities in Europe with westward declinations in the North Atlantic. This is more consistent with the historical record.

The alternate "European mode" is in some ways the opposite, with shallow inclination and low intensity in North Pacific, and eastward declinations in the North Atlantic and high intensities in Europe.

"As it turns out, the magnetic field is somewhat less complicated than we thought," Stoner said. "It is a fairly simple oscillation that appears to result from geomagnetic intensity variations at just a few recurrent locations with large spatial impacts. We're not yet sure what drives this variation, though it is likely a combination of factors including convection of the outer core that may be biased in configuration by the lowermost mantle."

24
আমাদের চারপাশে যা কিছু আছে তাই নিয়ে আমাদের পরিবেশ। অর্থাৎ প্রাকৃতিক পরিবেশ এবং মানুষের তৈরি পরিবেশ সৌরজগতের প্রাণের অস্তিত্ব সম্পন্ন এই গ্রহটির সার্বিক পরিবেশ ও প্রতিবেশ নিয়ন্ত্রণ করছে। ভূগোলবিদ KR Dikshit-এর ভাষায় মানুষ যেখানে বসবাস করে তার গুণাগুণ, শ্বাস-প্রশ্বাসের জন্য বায়ু, খাদ্য, পানি, অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সম্পদ প্রভৃতি পরিবেশের অন্তর্ভুক্ত। মানুষ বর্তমানে পরিবেশের অন্যতম নিয়ন্ত্রক সেহেতু সময়ের সঙ্গে মানুষের সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কার্যাবলী যুক্ত হয়ে বিবর্তিত পরিবেশ সৃষ্টি করে। মানুষসহ প্রতিটি জীবই পরিবেশের অন্যতম উপাদান এবং মানুষসহ কোনো প্রাণীই পরিবেশের সঙ্গে মিথস্ক্রিয়া ছাড়া বেঁচে থাকতে পারে না। কাজেই পরিবেশের প্রভাব সব প্রাণীর ওপরই অনস্বীকার্য।

সম্প্রতি পৃথিবীব্যাপী পরিবেশের গুরুত্ব উপলব্ধি করে পরিবেশ সংরক্ষণে মানব সভ্যতা অধিকতর সচেতনতা অবলম্বন করতে শুরু করেছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক কনভেনশন যেমন- মানব পরিবেশবিষয়ক জাতিসংঘ সম্মেলনের ঘোষণা- স্টকহোম ১৯৭২, প্রকৃতির জন্য বিশ্ব সনদ ১৯৭২, জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক জাতিসংঘ ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন ১৯৯২, কিয়োটো প্রটোকল ১৯৯৭, ওজোন স্তর সংরক্ষণে ভিয়েনা কনভেনশন ১৯৮৫, ওজোন স্তর ক্ষয়কারী লীগ সম্পর্কিত মন্ট্রিল প্রটোকল ১৯৮৭, ঝুঁকিপূর্ণ বর্জ্যরে আন্তঃরাষ্ট্রীয় চলাচল ও অপসারণ নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত ব্যাসেল কনভেনশন ১৯৮৯, দীর্ঘস্থায়ী জৈব রাসায়নিক ক্ষতিকর পদার্থ সংক্রান্ত স্টকহোম কনভেনশন ২০০১ ইত্যাদিসহ আরও অনেক কনভেনশনের পাশাপাশি পৃথিবীর রাষ্ট্রগুলো নিজ উদ্যোগে পরিবেশ সংরক্ষণে বেশ কিছু আন্তর্জাতিক আইন ও নীতিমালা গ্রহণ করেছে।

পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫, পরিবেশ আদালত আইন ২০১০, বিলুপ্তকৃত পরিবেশ আদালত আইন ২০০০, শব্দদূষণ (নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা ২০০৬, ইট পোড়ানো (নিয়ন্ত্রণ) আইন ১৯৮৯, ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫, মহানগরী বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরের পৌর এলাকাসহ দেশের সব পৌর এলাকায় খেলার মাঠ, উন্মুক্ত স্থান, উদ্যান এবং প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন ২০০০ এবং পরিবেশ সংশোধিত আইন ২০১০ সহ এসব নানা ধরনের পরিবেশবান্ধব আইন ও নীতিমালা পাস ও গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশও পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করছে। তারপরও বাংলাদেশে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে দুঃখজনকভাবে। বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে একদিকে প্রাকৃতিক পরিবেশ মারাত্মকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে, অন্যদিকে মানুষের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড প্রাকৃতিক পরিবেশকে ক্রমাগত বিপর্যস্ত করে তুলছে।

সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে তেলবাহী কার্গো ট্যাঙ্কার দুর্ঘটনায় বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট প্রাকৃতিক পরিবেশের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতে বাংলাদেশসহ বিশ্ব পরিবেশবাদীদের উদ্বিগ্ন ও আহত করেছে। প্রাকৃতিক গ্যাস সরবরাহ পাইপ ফেটে অনেক সময় পরিবেশ দূষিত হয়। অথচ দ্রুত গ্যাস পাইপ মেরামত করতে দেখা যায় উদাসীনতা। শিল্প ও কল-কারখানার বর্জ্য, জ্বালানিজনিত কার্বন নির্গমন, বৃক্ষ নিধন ও প্রাকৃতিক জলাধার ধ্বংস করে মরুকরণ প্রক্রিয়া প্রাণীর জীবন ধারণের ওপর বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করে চলেছে। পাশাপাশি দুর্ঘটনাজনিত পরিবেশ বিধ্বংসী প্রতিকূল অবস্থায় দেশের মানুষ, প্রাণী, উদ্ভিদসহ অন্যান্য জীববৈচিত্র্য যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হয়, তেমনি দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও ব্যবস্থাপনা মারাত্মকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়। আমাদের দেশে পরিবেশ বিধ্বংসী যেসব দুর্ঘটনা ঘটছে তার পেছনে অন্যতম কারণগুলো হচ্ছে দুর্ঘটনা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার অপ্রতুলতা, দক্ষ জনবল ও প্রযুক্তির অভাব, দায়িত্বে কর্মরত ব্যক্তিবর্গের দায়িত্বহীনতা, আইনগত দুর্বলতা ও শাস্তি প্রয়োগের দীর্ঘসূত্রিতা এবং পরিবেশ উন্নয়ন ও সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতার অভাব। পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ অনুযায়ী দেশে পরিবেশ অধিদফতর নামে একটি অধিদফতর গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি পরিবেশ আদালত আইন ২০১০ সংসদ কর্তৃক ১১ অক্টোবর ২০১০ তারিখে রাষ্ট্রপতির সম্মতি লাভ করেছে। বাংলাদেশ পরিবেশ আইন ১৯৯৫-এর ৪ ধারা অনুযায়ী এ আইনের বিধান সাপেক্ষে, পরিবেশ সংরক্ষণ, পরিবেশগত মান উন্নয়ন এবং পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ ও প্রশমনের উদ্দেশ্য সমীচীন ও প্রয়োজনীয় বলে বিবেচিত সব রকম কার্যক্রম গ্রহণ করা যাবে এবং কার্যক্রম সম্পাদনের উদ্দেশ্যে যে কোনো ব্যক্তিকে প্রয়োজনীয় লিখিত নির্দেশ অধিদফতর কর্তৃক প্রদান করা যাবে। তবে ক্ষমতা ও কার্যাবলীর ধারা ৪(১), ৪(২), ৪(৩)-এর অধীনে কোনো সময়সীমা নির্ধারিত নেই পরিবেশের উন্নয়ন সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম গ্রহণ করার। ৪(২) (জ) উপধারায় পানীয় জলের মান পর্যবেক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা ও রিপোর্ট প্রণয়ন এবং সংশ্লিষ্ট সব দিকে পানীয় জলের মান অনুসরণে পরামর্শ বা ক্ষেত্রগত নির্দেশ প্রদান অথবা ৪(৩) (খ)-এর শর্ত অনুযায়ী কোনো ক্ষেত্রে পরিবেশ দূষণের কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলে অধিদফতর জরুরি বিবেচনায় তাৎক্ষণিকভাবে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিতে পারে পরিবেশ আদালতের ৪ ধারার অধীনে। কিন্তু সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি বা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি কর্তৃক মামলা করার কোনো বিধান নেই। জেলা পর্যায়ে পরিবেশ আদালত রয়েছে সেটি অনেকেরই অজানা। সাধারণ বিচারিক আদালত এবং পরিবেশ আদালত এক হয়ে মিশে আছে পরিবেশ আদালত আইন, ২০১০ -এর ধারা ৪-এর ২ নং উপধারা মোতাবেক। ধারা ৪(২) এ বলা হয়েছে, একজন বিচারকের সমন্বয়ে পরিবেশ আদালত গঠিত হবে এবং সরকার, সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে পরামর্শক্রমে, যুগ্ম-জেলাজজ পর্যায়ের একজন বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাকে ওই আদালতের বিচারক নিযুক্ত করবে এবং উক্ত বিচারক তার সাধারণ এখতিয়ারভুক্ত মামলা ছাড়াও পরিবেশ আদালতের এখতিয়ারভুক্ত মামলাসমূহের বিচার করবেন। কিন্তু পরিবেশবিষয়ক মামলা গ্রহণ ও বিচারকার্য অস্পষ্টতার আবর্তে ঘুরপাক খেতে বাধ্য হয়। জনগণের অধিকার নেই পরিবেশ আদালতে গিয়ে পরিবেশ দূষণ কিংবা পরিবেশের মান ক্ষুন্ন হলে ন্যায়বিচার পাওয়ার। পরিবেশ আদালত আইন ২০১৩-এর ৬ ধারামতে পরিবেশ আইনে বর্ণিত সব অপরাধের বিচারের জন্য পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালকের বা তার কাছ থেকে ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি স্পেশাল মেজিস্ট্রেট আদালতে সরাসরি মামলা দায়ের করতে পারবেন বা থানায় এজাহার দায়ের করতে পারবেন। অর্থাৎ এ ধারা থেকে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান জনগণের সরাসরি পরিবেশ আদালতে মামলা করার অধিকার নেই। শুধু মহাপরিচালক বা তার ক্ষমতাপ্রাপ্ত প্রতিনিধির সরাসরি মামলা করার অধিকার রয়েছে। তাই আমরা মনে করি জনগণ বা সাধারণ মানুষ যদি সরাসরি পরিবেশ আদালতে মামলা করতে না পারে তাহলে পরিবেশ রক্ষা করা আদৌ কী সম্ভব! জীববৈচিত্র্য বা অন্যান্য প্রাণীকুলের জীবন ও পরিবেশ সুরক্ষা কেবল মানুষই দিতে পারে। সেক্ষেত্রে জনসাধারণের সম্পৃক্ততায় সরাসরি মামলা করার অধিকার না থাকা পরিবেশ আইনের দুর্বলতাই বলতে হয়। আবার দুর্নীতির কারণেও অধিদফতর কর্তৃক তদন্ত রিপোর্ট প্রদানে স্বচ্ছতা থাকে না বলে পরিবেশবাদীরা মনে করেন। এছাড়া পরিবেশ আইন ভঙ্গের জন্য সর্বোচ্চ শাস্তির যে বিধান রয়েছে তাও ক্ষেত্রবিশেষ যথেষ্ট নয়। প্রাকৃতিক পরিবেশের চলমান দুর্দিনে মানবসৃষ্ট পরিবেশ দূষণের জন্য আরও কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা প্রয়োজন।

বর্তমানে পরিবেশ উন্নয়নে আগের চেয়ে বিশ্বব্যাপী সুবাতাস বইছে। একসময় পরিবেশ নিয়ে মানুষের এত বেশি মাথাব্যথা ছিল না। সভ্যতার ক্রমবিকাশে মানুষ সৌন্দর্য সচেতন হচ্ছে, জীবন ধারণে রুচিশীল, জ্ঞান-বিজ্ঞানে অগ্রসর এবং স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন হচ্ছে বলেই প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে মানবসৃষ্ট পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখার প্রতি গুরুত্বারোপ করছে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক প্রযুক্তিগত জ্ঞান, অভিজ্ঞতা, দক্ষতা, দায়ীত্বশীলতা ও দেশপ্রেমের মাধ্যমেই দেশ ও মানব উন্নয়নে পরিবেশ রক্ষায় ঐক্যবদ্ধভাবে রাষ্ট্র ও সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। যথাযথ আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগের মাধ্যমে মানুষ, প্রাণী ও উদ্ভিদকুলের অস্তিত্ব রক্ষায় অর্থাৎ পৃথিবীকে বাসযোগ্য রাখতে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ এখন সময়ের দাবি।

25
বিশ্বে পাঁচ বছরের নিচে যত শিশুর মৃত্যু হচ্ছে তার এক চতুর্থাংশই মারা যায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, পানিদূষণ, বায়ুদূষণ বা পরিবেশ দূষণের কারণে সৃষ্ট বিভিন্ন রোগে। সোমবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর রয়টার্সের। অস্বাস্থ্যকর এবং দূষিত পরিবেশের কারণে শিশুরা ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া, নিউমোনিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, প্রতিবছর এসব রোগে ১৭ লাখ শিশুর মৃত্যু হচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক মার্গারেট চ্যান এক বিবৃতিতে বলেন, দূষিত পরিবেশ শিশুদের জন্য খুবই বিপজ্জনক। নোংরা পরিবেশ এবং দূষিত পানির কারণে শিশুদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গের বিকাশ এবং রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ঝুঁকিতে থাকে। শিশু বাড়িতে বা বাড়ির বাইরে বিভিন্ন ধরনের দূষণের কারণে বিপজ্জনক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

28
 ::)

29
বর্তমান বিশ্বে পরিবেশগত নিরাপত্তার বিষয়টি বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে। প্রাকৃতিক ও মনুষ্য সৃষ্ট দুর্যোগসহ নানা কারণে প্রকৃতি ও পরিবেশ আজ হুমকির মুখে। এমতাবস্থায় দিন দিন পরিবেশবিজ্ঞানীদের প্রয়োজনীয়তা বেড়েই চলেছে। পরিবেশ নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে এবং প্রকৃতিকে ঝুঁকিতে ফেলে কোনো প্রকল্প যেন না নেয়া হয় সেজন্য উন্নত বিশ্বে পরিবেশ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা শিক্ষার ওপর জোর দেয়া হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি বৃত্তি দেয়া হচ্ছে পরিবেশ শিক্ষায়। উন্নত দেশগুলোর পাশাপাশি উন্নয়নশীল দেশগুলোতেও এ শিক্ষা এগিয়ে যাচ্ছে। শিক্ষার প্রসারের পাশাপাশি পরিবেশ বিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটদের কর্মক্ষেত্রও বাড়ছে।

প্রসপেক্ট : পরিবেশ বিজ্ঞানের একজন গ্রাজুয়েট ভূ-বিজ্ঞান থেকে শুরু করে জলবায়ু তত্ত্ব, সমুদ্র তত্ত্ব, উদ্ভিদ-ভূগোল তত্ত্ব, মৃত্তিকা বিজ্ঞান, বাস্তুসংস্থান বিদ্যা, দুর্যোগ মোকাবিলা, নগর পরিকল্পনা, গ্রামীণ পরিকল্পনা ইত্যাদি নানা বিষয়ে জেনে থাকে। তাই সরকারি বেসরকারি যে কোনো প্রকল্পের পরিবেশগত ঝুঁকি ও প্রভাব নিরূপণে পরিবেশবিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটদের দরকার হচ্ছে। দেশের দুর্যোগ মোকাবিলায় যেমন দরকার একজন পরিবেশ বিজ্ঞানীর, তেমনি জলে-স্থলে-শূন্যে যে কোনো পরিকল্পনা বাস্তবায়নে পরিবেশবিদের বিকল্প খুঁজে পাওয়া ভার। দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, পৃথিবীতে মেধাবী পরিবেশবিদের চাহিদা শীর্ষে থাকলেও খুব কম সংখ্যক তরুণ-তরুণী আমাদের দেশে পরিবেশ বিজ্ঞান পড়তে আগ্রহী হচ্ছে। মূলত পরিবেশ বিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটদের জব প্রসপেক্ট না জানার কারণে এমনটা হচ্ছে।

চাকরির ক্ষেত্র : সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পরিবেশ বিজ্ঞানে পড়ালেখার পাঠ চুকানোর পর একজন গ্রাজুয়েটের বেকার থাকতে হয় না। দেশেই ভালো মানের চাকরি হয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে এনভায়নমেন্টাল সেল খোলা হচ্ছে, সেখানে এ বিষয়ের গ্রাজুয়েটদের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। চাকরি হচ্ছে কৃষি সম্প্র্রসারণ অধিদফতর, কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট, মৃত্তিকা সম্পদ গবেষণা ইন্সটিটিউট, কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন, বাংলাদেশ পরমাণু গবেষণা ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশ চা গবেষণা ইন্সটিটিউট, এনভায়রনমেন্টাল প্রোটেকশন এজেন্সি, প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ, মাছ ও বন্যপ্রাণী সেবা অধিদফতর, জাতীয় বন পরিসেবা, খাদ্য নিরাপত্তা বিভাগে।

এনজিও-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান : এছাড়া বিভিন্ন আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান যেমন- সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভায় আবাসিক-বাণিজ্যিক ভবনসহ উন্নয়ন প্রকল্পে পরিবেশগত ঝুঁকি নিরূপণের জন্য পরিবেশ বিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটদের দরকার হচ্ছে।

ট্যুরিজম সেক্টরেও অনেকের চাকরি হচ্ছে। তৈরি পোশাক শিল্পে এ বিষয়ের গ্রাজুয়েটদের প্রসপেক্ট অত্যন্ত উজ্জ্বল। গার্মেন্ট শ্রমিকদের নিরাপত্তা, কর্মপরিবেশ, স্বাস্থ্যঝুঁকি এসব নিরূপণে পরিবেশ বিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটদের দরকার হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অষ্ট্রেলিয়া, কানাডা, নিউজিল্যান্ডসহ উন্নত দেশগুলো পরিবেশ শিক্ষায় সবচেয়ে বেশি বৃত্তি দিচ্ছে। কেউ চাইলে সহজেই বৃত্তি নিয়ে পরিবেশের ওপর মাস্টার্স ও পিএইচডি করতে ওইসব দেশে ভালো চাকরির সুযোগ গ্রহণ করতে পারেন।

রোজগার : পরিবেশ বিজ্ঞানের গ্রাজুয়েটরা চাকরির শুরুতে অন্যদের চেয়ে বেশি বেতনে কাজ শুরু করতে পারে। একজন ফ্রেশ গ্রাজুয়েটের বেতন প্রতিষ্ঠানভেদে ২০ হাজার টাকা থেকে ৬০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

কোথায় পড়বেন : মাওলানা ভাষানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, শাবিপ্রবি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান অথবা মৃত্তিকা ও পরিবেশ বিজ্ঞান নামে ডিগ্রি দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া ড্যাফােডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি,  নর্থসাউথ, ইন্ডিপেন্ডেন্টসহ বেশ কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পরিবেশ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা পড়ানো হচ্ছে। আগ্রহীরা যে কোনো একটিতে পড়তে পারেন।

30
World Environment Day-2017 observed by ESDM department of Daffodil International University


With the theme “connecting people to nature” the department of Environmental Science and Disaster Management (ESDM) of Daffodil International University (DIU) observed ‘World Environment Day-2017’ today on June 05, 2017. To mark the day department of Environmental Science and Disaster Management of DIU organized a Rally and Project Exhibition to create awareness about the restoration of Environment. The rally was started from the Main Campus and surrounded the Russel Square the capital and ended at campus premises. After the rally, Project Exhibition was inaugurated at ground floor of Daffodil Tower by Professor Dr. Yousuf Mahbubul Islam, Vice Chancellor, DIU. In the meantime Prof. Dr. S.M. Mahbub Ul Haque Majumder, Pro-Vice Chancellor, Dr. A.B.M. Kamal Pasha, Associate Professor and Head, Department of Environmental Science and Disaster Management, Mr. Md. Azharul Haque Chowdhury, Lecturer and Mrs. Zannatul Ferdous, Lecturer were also present at the project exhibition inaugural session.

Please check the following link about the event.
http://news.daffodilvarsity.edu.bd/1112-world-environment-day-2017-observed-by-esdm-department-of-daffodil-international-university.html

Pages: 1 [2] 3 4 ... 6