Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - nafees_research

Pages: [1] 2 3 ... 12
1
ক্যারিয়ার ব্লকচেইন স্টাডি গ্রুপে এশিয়ার ছয় সেলফোন অপারেটর

সম্প্রতি আসিয়ানভুক্ত ও দক্ষিণ এশিয়ার ছয়টি সেলফোন অপারেটর ক্যারিয়ার ব্লকচেইন স্টাডি গ্রুপ (সিবিএসজি) -এর সাথে সংযুক্ত হয়েছে। সিবিএসজি মূলত সেলফোন অপারেটরদের একটি বৈশ্বিক ব্লকচেইন সংগঠন। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ক্রস-ক্যারিয়ার ব্লকচেইন প্লাটফর্ম ও ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে এসব সেলফোন অপারেটরগুলো সংগঠনটিতে যোগ দিয়েছে।

ক্যারিয়ার ব্লকচেইন স্টাডি গ্রুপের নতুন সদস্যরা হচ্ছে ফিলিপাইনভিত্তিক পিএলডিটি, মালেয়শিয়ার আজিয়াটা গ্রুপ বারহাদ, ইন্দোনেশিয়ার পিটি, ভিয়েতনামের ভিয়েটেল টেলিকম কর্পোরেশন, কুয়েতের জেইন গ্রুপ এবং তুরস্কের টার্কসেল।

বর্তমান বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় প্রযুক্তি হল অভিনব পদ্ধতিতে উদ্ভাবিত ব্লকচেইন। সিবিএসজি তাদের সদস্যরা এসব অপারেটরের গ্রাহকদের বিভিন্ন সেবা দিতে ব্লকচেইন পদ্ধতি ব্যবহার করতে চাচ্ছে। তাদের বিভিন্ন সেবার মধ্যে আছে ডিজিটাল পেমেন্ট, পারসোনাল অথেনটিকেশন, ইন্টারনেট অব থিংস বা আইওটি অ্যাপ্লিকেশন।

সিবিএসজি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে। সংগঠনটি পরবর্তী প্রজন্মের বৈশ্বিক ক্রস-ক্যারিয়ার ব্লকচেইন প্লাটফর্ম ও ইকোসিস্টেম গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ নিয়েছিল। এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যসমূহ হচ্ছে ইংল্যান্ডের টিবিএসএ সফট ও স্প্রিন্ট কর্পোরেশন, তাইওয়ানের ফার ইএস টোন টেলিকমিউনিকেশন্স এবং জাপানের সফটব্যাংক। পরবর্তীতে দক্ষিণ কোরিয়ার এলজি আপলাস ও কেটি কর্পোরেশন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইতিসালাত টেলিকমিউনিকেশন কর্পোরেশন।

সিবিএসজি-তে আসিয়ানভুক্ত ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সেলফোন অপারেটররা যোগ দেওয়ার পর সংগঠনটিতে আরেকটি ব্লকচেইন ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। ফলে বৈশ্বিক রেমিটেন্স সেবায় বেশি নজর দেওয়া সম্ভব হবে। কারন এই ধরনের উন্নতমানের সেবার ক্ষেত্রে ব্লকচেইন যথোপযুক্ত।

সিবিএসজি-তে যোগদান বিষয়ে পিএলডিটির ইন্টারন্যাশনাল এন্ড ক্যারিয়ার বিজনেস বিভাগের প্রধান ক্যাটরিনা লুনা-আবেলার্ড বলেন, “প্রায় দেড় যুগের বেশি সময় ধরে আমরা বিদেশই গ্রাহকদের সেবা দিয়ে আসছি। আন্তঃক্যারিয়ার ব্লকচেইন প্রযুক্তি নিঃসন্দেহে এসব গ্রাহকের অনেক উপকারে আসবে। সিবিএসজি-এর নতুন প্লাটফর্ম ও সল্যুশনের সাহায্যে আমরা বৈশ্বিক গ্রাহকদের আরো সুবিধা দিতে চাচ্ছি।”

টিবিএসএ সফট ও স্প্রিন্ট কর্পোরেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও এবং সিবিএসজির কো-চেয়ারম্যান লিং উ বলেন, “২০১৭ সালের প্রতিষ্ঠার পর থেকে সিবিএসজি-এর সদস্য সংখ্যা দ্রুত বাড়ছ। ইতোমধ্যে আমরা কাজ শুরু করেছি।”

এই উদ্যোগের আগে চীনভিত্তিক টেলিকম জায়ান্ট হুয়াওয়ে টেকনোলজিস তাদের ক্লাউড সেবায় ব্লকচেইন প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে।

এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ন টেলি-যোগাযোগ গ্রুপ আজিয়াটা। বর্তমানে ১৩টি দেশে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম চালু করেছে। এসব দেশের গ্রাহকের সংখ্যা ৩৫ কোটির বেশি। আজিয়াটার প্রধান বিপণন কর্মকর্তা ডমিনিক পি এরিনা বলেন, “ডিজিটাল প্লাটফর্মে ব্লকচেইন নতুন সুযোগ সৃষ্টি করেছে। তাই আমরা সিবিএসজি-তে যোগ দিয়েছি।” 

Source: http://bangla.fintechbd.com/2018/08/04/%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%B2%E0%A6%95%E0%A6%9A%E0%A7%87%E0%A6%87%E0%A6%A8-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%A1/

2
How scientists and supercomputers could make oceans drinkable

Removing salt from seawater is an enormous challenge. Researchers may have the answer—but it will require a whole lot of processing power. Aleksandr Noy has big plans for a very small tool. A senior research scientist at Lawrence Livermore National Laboratory, Noy has devoted a significant part of his career to perfecting the liquid alchemy known as desalination—removing salt from seawater. His stock-in-trade is the carbon nanotube. In 2006, Noy had the audacity to embrace a radical theory: Maybe nanotubes—cylinders so tiny, they can be seen only with an electron microscope—could act as desalination filters. It depended on just how wide the tubes were. The opening needed to be big enough to let water molecules flow through but small enough to block the larger salt particles that make seawater undrinkable. Put enough carbon nanotubes together and you potentially have the world’s most efficient machine for making clean water.

Most of his colleagues at the lab dismissed the idea as sci-fi. “It was hard to imagine water going through such very small tubes,” says Noy. But if the nanotube theory was correct, the benefit would be incalculable. Many of the world’s regions are currently in the midst of a potable water shortage, with 1.2 billion people—about one-sixth of the global population—living in areas of water scarcity. Desalination can help, but the infrastructure in place today requires massive amounts of energy (and therefore money) to heat seawater or to force it through complex filters. If nanotube filters worked, they could greatly reduce the world’s water woes.

 Aleksandr Noy
Aleksandr Noy
Senior Research Scientist, Lawrence Livermore National Laboratory
Noy’s team set up a simple filtration experiment and let it run overnight. In the morning, two assistants noticed a puddle on the lab floor; water had slipped through the nanotubes so rapidly that the small reservoir meant to catch the liquid had overflowed. Researchers would later confirm that the flow rate of water through carbon nanotubes is six times higher than it is through the filters used in today’s desalination plants.

That puddle may have been small, but it was one of the biggest discoveries of Noy’s career. “The experiment was exciting,” he recalls, “because nobody knew what to expect.” Now that everyone does, a huge challenge remains—one that might be possible to surmount with enough computing power.

Luckily, scientists are on the verge of a breakthrough called exascale computing (which in Google’s case is likely to come from a throng of machines connected in the cloud). Exascale will dwarf today’s most powerful supercomputers. This kind of extreme processing power will be a huge asset to researchers figuring out how to make nanotubes work as large-scale water filters. These tubes—and the billions of molecules that flow through them—are far too small to study in detail, and physically testing different variations is difficult and time-consuming. Exascale computer modeling will put those tiny tubes into sharper focus, which will dramatically speed up nanotube desalination research. In fact, the technology will help tackle a number of today’s thorniest environmental problems.

The Promise of Exascale Power
Vastly increased speed could help surmount once-impossible challenges and lead to big breakthroughs. or those not versed in the jargon of Silicon Valley, exascale refers to the horsepower offered by the next generation of supercomputers. An exascale machine will have the ability to crunch a quintillion (a billion billion) calculations per second. That’s nearly 11 times more powerful than China’s Sunway TaihuLight, the fastest computer in use today. Think of exascale as the processing power of roughly 50 million tethered laptops.

A worldwide race is on to build the first exascale machine, which will enable scientists to revisit everything from theoretical physics to long-term weather forecasts. But research like Noy’s quest to understand nanotubes will likely be some of the first projects to realize the advantages of increased computing capabilities.


“A jump in computation power will be a huge benefit to materials science, drug discovery, and chemistry,” says George Dahl, a research scientist on the Google Brain team. All of these areas of research, Dahl explains, require building computer models of molecules—an activity that demands a lot of processing power. “These are very slow computations,” says Dahl, “for each and every molecule or material we want to analyze.”

But there’s more, he adds. If you apply machine learning—which also benefits from advances in computing power—to molecular simulations, you get a double whammy of increased power. “You can use machine learning in conjunction with materials science to find all new materials.”

These are exactly the type of advances that will lead to a better, less expensive salt water filter. And that’s not the only way exascale-level computing might help the planet’s water challenges.

Because exascale computing will also be exceptional at processing significant quantities of data, it could help with projects like the work being done, in part, by Google engineers Noel Gorelick, cofounder of the Earth Engine platform, and Tyler Erickson, a senior developer advocate focusing on water-related analyses for the platform. The cloud-based platform analyzes environmental data on a global scale. A recent ambitious effort, led by Gorelick and the European Commission’s Joint Research Centre, sought to create high-resolution maps of surface water around the world. By looking at 30-plus years of satellite images using the Earth Engine data, the team mapped (and measured) the evolution of Earth’s bodies of water over the decades, revealing vanished lakes and dried-up rivers as well as the formation of new water bodies. It would have taken three years just to download the necessary data if it had been done all at once. That’s quite an archive, Erickson says, but exascale will allow the team to collect even more information—at a vastly quicker speed—to produce even more accurate maps.

“There are other data sources that we could be looking at if we had more processing power,” Erickson says. An exascale machine, he points out, has the potential to tap into the world’s most undervalued resource: citizen scientists. Imagine if the water-mapping project were opened to, say, anyone flying a drone who shoots HD video. “That would be a pretty spectacular amount of data,” he says. High school kids piloting DJI Phantoms over rivers and estuaries might upload video to the Google Cloud, where, thanks to exascale power, it could be filed, geo-referenced against Google’s base map of the world, analyzed, and distilled into digital cartography. This democratization of science in action could aid agricultural planning, prepare regions for disasters, or even help monitor ecological changes. (To spur similar projects at other organizations, in 2014 Google announced that it is donating a petabyte of cloud storage for climate data as well as 50 million hours of computing with the Google Earth Engine platform.)

Dahl, for his part, is quick to add that leaps in processing power won’t solve every computing challenge. But, he says, the biggest benefits may come from uses we have yet to imagine. He makes an analogy to the invention of the microscope—a device that led to lifesaving new discoveries. “Maybe there will be something that we’ve never considered doing that suddenly will become practical,” he says. “Maybe it will allow us to build something like the microscope—a completely new tool that, in turn, enables completely new discoveries.”

High-performance computing is measured in FLOPS. This metric can be applied to any machine, from a laptop to the world’s fastest supercomputer. More FLOPS equal more speed; more speed equals higher resolution, or the ability to see things in finer detail; higher resolution equals more accurate computer-simulation images and predictions. This is especially valuable to places like the National Oceanic and Atmospheric Administration, which uses computers to predict weather patterns, changes in climate, and disruptions in the oceans and along the coasts.

Exaflop systems can perform 1018 (a billion billion) calculations per second. NOAA expects to use exascale systems in the 2020s. “It will give us the ability to provide more accurate warnings of severe weather at finer scales and longer lead times that will provide much better protection of lives and property,” says Brian D. Gross, deputy director of high performance computing and communications at the agency. Scientists could help build up resilience in anticipation of extreme climate events, such as a devastating hurricane, enabling an entire region to limit the damage and death toll.

To convey the scale of that computing power, Gross explains that the department used teraflops systems in the 2000s (a trillion calculations per second) that could accurately track large weather features roughly the size of a state; today the systems use petaflops (a quadrillion calculations per second) and can accurately track weather features the size of a county. Exascale computing will allow NOAA to zoom in much closer for more detail—for instance, accurately mapping thunderstorms as small as a city. This resolution provides more information, which reveals a lot more about how storms of all sizes will behave and evolve. “Higher-resolution models more accurately depict larger-scale weather systems like hurricanes, improving the prediction of rainfall and storm tracks,” says Gross. Put another way: A few years from now, weathercasters will have little excuse if they mess up the five-day forecast. And we’ll know more about exactly where and when that next superstorm will hit.

Exascale computing can help solve fresh water shortages

Faster supercomputers will aid researchers who are studying desalination and depollution filters to boost the amount of drinkable water in the world. Fresh water access is a challenge around the world. From the depleted aquifers beneath Saudi Arabia to the baked soil of Brazil to America’s breadbasket, where drought has spread across the Great Plains like cracks in pavement, mass dehydration is looming. A 2012 U.S. intelligence report concluded that fresh water shortages will even impact national security. The demand for fresh water is expected to be 40 percent higher than the global supply by 2030.

Rising temperatures, less rainfall, more people, pollution, and poverty—the challenges underlying the demand can seem, on the surface, insurmountable. But Aleksandr Noy remains convinced that an exascale machine will help him create a nanotube membrane that filters water and saves lives. “With so much computer power, we can run a quick simulation before we go to the lab,” he says. “That’s really helpful because it will allow us to focus our energy on the experiments that make sense.” And there is still a lot to figure out: The precise measurements required for water transport through the nanotubes has yet to be established, and no one knows the best membrane material in which to embed a bunch of nanotubes or how they should be arranged. “In many of the nanotube modeling studies using simulations, there is still discrepancy in the numbers,” says Ramya Tunuguntla, a postdoctoral researcher working with Noy. “That’s a challenge we must overcome.” Like Noy, she thinks a more robust supercomputer will take their research to the next level: “With exascale, we could run longer simulations to collect more data.”

In 2023, a new computer will be installed at Livermore Lab. With four to six times the number-crunching power of the current system, this machine, dubbed Sierra, is likely the last step before exascale will enable the ogling of all those gorgeous high-def images that come with a quintillion FLOPS. In fact, exascale may have already arrived elsewhere by then. One top researcher at Livermore says that while the first exascale machines will start showing up in the U.S. around 2020, China—the prohibitive favorite in this race—claims it will deliver a prototype either later this year or early next year that some have called the “super-supercomputer.”

Costas Bekas, a two-time Gordon Bell Prize winner and an exascale expert at the IBM Research lab in Zurich, points out that exascale isn’t an end—computing power will continue to grow. He foresees a day when computer modeling allows us to examine the universe at not just the molecular level but at the atomic level.

“Exascale means that we can finally crack—in an acceptable amount of time and energy spent—things that are very complex, like how carbon nanotubes work,” Bekas says. “Exaflops will not save the planet. We have too many problems. However, it will definitely make the Earth a much better place to live.”

Back at Lawrence Livermore, Aleksandr Noy and Ramya Tunuguntla load another nanotube membrane into a test cell, flip a switch, and collect more data. Soon they—along with exascale computing—may change the lives of billions.

Source: https://www.google.com/about/stories/scientists-could-make-oceans-drinkable/

3
Bangladesh 73rd on National Cyber Security Index

Bangladesh has ranked 73rd among 100 nations in the National Cyber Security Index (NCSI), published recently by the Estonia-based e-Governance Academy.

The countries have been ranked in the index after their preparedness to prevent fundamental cyber threats and readiness to tackle cyber incidents, crimes, and large-scale cyber crises were measured.

France topped the list with a score of 83.12, while Germany ranked 2nd with the same score and Estonia 3rd with 81.82.

With the score of 25.97, Bangladesh is ahead of Sri Lanka, Indonesia, Nepal, and Bhutan in the index.

Sri Lanka has been ranked 77th, Indonesia 83rd, Nepal 92nd, and Bhutan 93rd.

Bangladesh also ranked 53rd in the NCSI’s Global Cybersecurity Index, 147th in the ICT Development Index, and 112th in the Networked Readiness Index.



In their evaluation, NCSI examined Bangladesh's cyber security platform BGD e-Gov CIRT, implemented under the Leveraging ICT for Growth, Employment, and Governance (LICT) project of the Bangladesh Computer Council.

LICT Project Director Md Rezaul Karim said Bangladesh has already improved the response capacity of the Computer Security Incident Response Teams (CSIRT) to mitigate targeted cyber-attacks through a cyber-drill conducted by the Organization of Islamic Cooperation-Computer Emergency Response Teams (OIC-CIRT).

Deputy Project Director Tarique M Barkatullah said the NCSI rankings were based on the participating nations’ capacity for identification of evolving cyber threats, identification of cyber security measures and capabilities, as well as the selection of important and measurable aspects, including legal acts, regulations, policies, exercises, technologies, websites and programs.

The BGD e-Gov CIRT has an expert team to mitigate cyber threats and cybercrimes, and members of the team are highly certified, he said.

Source: https://www.dhakatribune.com/technology/2018/05/29/bangladesh-ranks-73-in-global-cyber-security-index

4
Blockchain / The promise of FinTech for Bangladesh
« on: July 24, 2018, 09:04:41 PM »
The promise of FinTech for Bangladesh

The modern financial services industry is more than 400 years old. Cheques were introduced in the seventeenth century for settling payments and insurance contracts were used a few centuries before that. Over the years, financial services institutions have enabled more people to subscribe to their services. Yet, today, more than 35 million people in Bangladesh don't have a bank account and their economic activities are not part of the formal economy of the country. FinTech can change this scenario, if adopted with the right regulatory framework and technological support.

FinTech, or financial technology, aims to compete with traditional financial methods in the delivery of financial services. It is a new industry that uses technology to improve activities in finance by reducing cycle time and costs of services and by improving the quality of services. FinTech is poised to accelerate financial inclusion in emerging countries like Bangladesh. Financial institutions in other emerging countries like India have already adopted many components of FinTech and are reaping its benefits.

FinTech can reform payments processing activities within the economy of Bangladesh. Today, a significant amount of payments are made through cash or through informal economic transactions. Facilitating payments through specialised financial institutions will help bring a large segment of the informal economy into the formal economy. Increasing payments through the formal economy will improve transparency within the economic system and will improve the effectiveness of tax collection.



FinTech-enabled payments processing will also reduce the amount of cash required for the printing and distribution of currency notes. Additionally, it will help mitigate the risks of counterfeit currencies getting circulated in the country. Reduced requirement of cash will help the central bank reduce costs and manage risks.

Specialised financial institutions for facilitating payments are generally called payments banks. Payments banks are particularly useful for people who don't have any bank account but participate in payments activities. FinTech enables such banks to keep their operating costs at a minimum. Payments banks leverage mobile telecommunication infrastructure and their large subscriber base to remove the barrier of entry. They compete with cash transactions to provide an easier, faster and inexpensive option to their customers. FinTech can help achieve all these for the payments banks. With the right kind of guidelines from the regulators, the payments sector in Bangladesh can grow rapidly.

FinTech has the capability to automate traditional financial activities in a significant way. Retail financial activities such as granting of loans or approval of an insurance proposal require verification of the applications using standardised techniques. FinTech can automate these verification processes entirely. Thus, an individual can submit a loan application or an insurance proposal online with all the supporting documents digitally, and the verification and approval process can be completed within minutes. The applicant will receive a response regarding his/her application online or via email as soon as the process is complete. Such a technology-led service brings consistency in business operations and reduces the risk of error and bias. Moreover, it reduces the time to sell a financial product significantly and, thus, improves the satisfaction of customers.

FinTech is set to disrupt the business of financial advisory services. Traditionally, financial advisors used to be humans with a finite set of clients of high net worth. FinTech can help in setting up a robotic platform for financial advisory services where the services are delivered by robotic software, also known as robo advisors. Robo advisors are inexpensive, fast and consistent and can deliver services to multiple customers simultaneously. As robo advisors are inexpensive, a large group of individuals can avail their services, including individuals of high net worth. Robo advisors help financial institutions to grow their revenue by increasing the customer base without compromising on the quality of services.

FinTech is also redefining customer interactions in financial services institutions. Traditionally, customers used to call service centres for any assistance or service. They would also visit the branch or write to the branch officers. Now, customers have the option to chat with their financial service providers online. On FinTech-enabled platforms, chat discussions are facilitated by software robots, also known as chatbots. Similarly, when customers call service centres, their calls get answered by digital voice assistants or humanoid software. Newer technologies like machine learning and artificial intelligence have made such achievements possible. Such technologies help financial services institutions reduce costs and improve the speed and consistency of their services.

Bangladesh is at an advantageous position and can benefit greatly from FinTech. The country has a large younger population who can adopt technology faster and potentially become avid users of FinTech. The mobile subscription density of the country is at an all-time high, thereby reducing the last mile connectivity challenge. Macroeconomic growth factors are also favourable to catalyse the joining of more people into the formal financial services network. With encouragements from the regulators, the financial services institutions of Bangladesh should embrace and adopt FinTech in their transformation journey.

Source: https://www.thedailystar.net/business/the-promise-fintech-bangladesh-1602703

5
‘Bangladesh no longer just a cheap labour country'

Creating a growth ecosystem for information technology entrepreneurs and protecting their rights in the local markets will be key priorities to make Bangladesh a sourcing hub, Syed Almas Kabir, president of Bangladesh Association for Software and Information Services (Basis) tells the Dhaka Tribune’s Ibrahim Hossain Ovi in an interview

 
‘Bangladesh no longer just a cheap labour country’

As BASIS president, what areas of work will you be focusing on?

My first focus will be on creating an ecosystem for the entrepreneurs and to protect their rights in the local markets to give them space to grow.

In the ecosystem, priority will be given to ensuring access to finance, congenital business atmosphere, and helping to start a business, as well legal assistance.

As an organisation, BASIS does not have real data needed to set strategy and plans for the entrepreneurs of the ICT sector to ensure a congenial business atmosphere.

That is why I will launch a research project to collect data on people who are engaged in the sector, the size of local markets, and export earnings. The research will also focus on finding out the potentiality and also the problems to give a sense of direction to entrepreneurs, especially for newcomers.

How do you think the gap between institutional education and industry needs can be reduced in terms of skill?

There is a gap between the education system and industry needs. But the ice has started to melt.

As an academic, I have 12 years of experience teaching computer science and engineering. I have already sat with the University Grant Commission (UGC) and vice chancellors of renowned universities to establish collaboration between academic institutions and the industry.

Since there is a gap between academic knowledge and industry needs, especially in practical areas, we proposed including a four-month up-scaling program as part of academic education so that the mismatch can be reduced.

There is hope because we have started to realize the issues and have shown keen interest to work collaboratively.

How do we expand the export market?

Branding Bangladesh positively is the key to attracting global customers. Bangladesh was branded by its labour force, which was wrongly done. We have to brand ourselves with quality and capability.

Bangladesh has to let its potential markets know that it is no more just a cheap labour country, but a country of skilled manpower, and we have the ability to provide quality services and products.

To this end, Bangladeshi entrepreneurs have to concentrate on developing specific items such as mobile games and apps so that clients consider us a sourcing hub.

On top of that, we have to build trust with buyers by ensuring quality and commitment. On the other hand, we have to have proper marketing to inform targeted clients about products and capacity.

Can we ensure an office space for start-ups free of cost?

It is not possible to arrange office space free of cost for start-ups and small scale entrepreneurs. But we are negotiating with the government and Hi-tech Park Authority to allocate one floor in every hi-tech park to offer office space free of cost for at least one year.

Then, eventually the start-ups will pay for it, and if it is done properly, it will help create new entrepreneurs.

What are the challenges for the sector?

Two core elements for the industry – higher prices of internet bandwidth, and electricity – are the main challenges for the sector. As a result, we are going to urge the government to offer internet at 50% discount rate for the sector and a special tariff rate on electricity.

Bangladesh has set a target to earn $5 billion by 2021 from ICT sector. Do you think it is possible to achieve this?

I think it is possible to earn $5 billion by 2021. But we need government policy support, including making the money transactions easier to receive earnings from foreign countries.

How do we make outsourcing more vibrant?

It is not possible to reach the peak of success working separately. That is why the freelancers have to work together forming a group. It will help to get support from BASIS as well as from the government. This will also help strengthen business as an organization.

Source: https://www.dhakatribune.com/business/2018/07/09/bangladesh-no-longer-just-a-cheap-labour-country

6
যেভাবে ক্ষতিকর হয়ে উঠছে বাংলাদেশের চাষের মাছ

বাংলাদেশে যারা মাছ চাষ করেন, তাদের কেউ কেউ অভিযোগ করছেন মাছ চাষ ও ওষুধ ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরকারের কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট কোন পরামর্শ তারা পান না।

খাদ্য প্রস্তুতকারী বিভিন্ন কোম্পানির পরামর্শেই বিভিন্ন রাসায়নিক এমনকি এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার ও মাত্রা নির্ধারণ করেন তারা।

এছাড়া অনেক খামারেই এখনো মাছের খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয় মুরগির বিষ্ঠা ও আবর্জনা।

কিন্তু এ ধরণের প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত মাছ মানব স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে বলে সতর্ক করছেন গবেষকরা।

কিন্তু চাষের মাছ নিয়ে উদ্বেগ কতটা ব্যাপক? আর এক্ষেত্রে সরকারি নজরদারিই বা কতটা?

ঢাকার মিরপুরে একটি মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায় রুই, কাতল, মৃগেল, কৈ, পাঙ্গাশসহ বিভিন্ন ধরণের, নানান সাইজের মাছ নিয়ে বসে আছেন বিক্রেতারা।

বিক্রেতাদের ভাষায় যার কোনটি নদীর মাছ আবার কোনটি চাষের।

এই বাজারে নিয়মিতই মাছ কেনেন রুনা বেগম।

তিনি জানালেন, নদীর মাছ ছাড়া অন্য কোন মাছ তিনি কেনেন না। কিন্তু কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান,

''নদীর মাছে যে স্বাদ, চাষের মাছে সেটা পাই না। চাষের মাছে সবসময়ই কেমন যেন একটা গন্ধ থাকে। অনেকটা ঘাসের মতো।''

তবে চাষের মাছ কেনেন এরকম ক্রেতারও অভাব নেই। এর বড় একটা কারণ চাষের মাছের দাম কম।

একজন নারী ক্রেতা বলছিলেন, ''অনেক সময় নদীর রুই বা কাতল মাছের যে দাম চায়, তার অর্ধেক দামে চাষের রুই বা কাতল মাছ কিনতে পারি। কিন্তু চাষের মাছ কিনলেও মনে সবসময়ই একটা সন্দেহ থাকে যে এই মাছ কিভাবে, কোথায় চাষ হচ্ছে, মাছকে কি খাওয়াচ্ছে, এসব মাছ খেলে আমাদের কোন ক্ষতি হবে কি-না তা নিয়ে একটা ভয় থাকে।''

এতে বোঝা যায়, বাংলাদেশে মাছ চাষ নিয়ে একটা সন্দেহ-সংশয় রয়েছে অনেকের মধ্যেই।

এর যৌক্তিকতা বুঝতে মাছ চাষের জন্য বিখ্যাত শহর ময়মনসিংহের ত্রিশালে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিদিনই এই এলাকা থেকে লাখ লাখ টাকার মাছ ব্যবসায়ীরা ঢাকায় নিয়ে যান বিক্রির জন্য।



ত্রিশালের পোড়াবাড়ি এলাকায় দেখা যায় মাছের খামারের সঙ্গে সঙ্গে মুরগির খামারও গড়ে তোলা হয়েছে।

সেখানে দেখা যায় মুরগির খামারের বিষ্ঠা ও অন্যান্য আবর্জনা ধুয়ে নালায় ফেলছেন কয়েকজন কর্মচারী।

সেসব আবর্জনা পরে নালা হয়ে চলে যায় মাছের খামারে মাছের খাদ্য হিসেবে।

খামারের একজন কর্মচারীর জানালেন, গত সাত বছর ধরেই এই মাছের খামারে মাছের খাদ্য হিসেবে মুরগির বিষ্ঠা ব্যবহার করেন তারা।

এতে মাছের খাবারের পেছনে ব্যয় অনেকটাই কমে যায় তাদের।

তবে এভাবে বিষ্ঠা ব্যবহার করে যে মাছ চাষ নিষিদ্ধ সেটা জানেন না এই খামারের কেউই।

ত্রিশালেই আরো অন্তত: তিনটি মাছের খামারচোখে পড়ে যেখানে খাদ্য হিসেবে মুরগির বিষ্ঠা ব্যবহার হয়।

এ বিষয়ে কথা হয় মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গোলজার হোসেনের সঙ্গে।

ত্রিশালের পোড়াবাড়ি এলাকায় দেখা যায় মাছের খামারের সঙ্গে সঙ্গে মুরগির খামারও গড়ে তোলা হয়েছে।

সেখানে দেখা যায় মুরগির খামারের বিষ্ঠা ও অন্যান্য আবর্জনা ধুয়ে নালায় ফেলছেন কয়েকজন কর্মচারী।

সেসব আবর্জনা পরে নালা হয়ে চলে যায় মাছের খামারে মাছের খাদ্য হিসেবে।

খামারের একজন কর্মচারীর জানালেন, গত সাত বছর ধরেই এই মাছের খামারে মাছের খাদ্য হিসেবে মুরগির বিষ্ঠা ব্যবহার করেন তারা।

এতে মাছের খাবারের পেছনে ব্যয় অনেকটাই কমে যায় তাদের।

তবে এভাবে বিষ্ঠা ব্যবহার করে যে মাছ চাষ নিষিদ্ধ সেটা জানেন না এই খামারের কেউই।

ত্রিশালেই আরো অন্তত: তিনটি মাছের খামারচোখে পড়ে যেখানে খাদ্য হিসেবে মুরগির বিষ্ঠা ব্যবহার হয়।

এ বিষয়ে কথা হয় মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গোলজার হোসেনের সঙ্গে।

তিনি জানালেন, ''মুরগি পালনে নানা রকম এন্টিবায়োটিক ব্যবহার হয়। যেগুলো মুরগির বিষ্ঠার মাধ্যমে মাছের শরীরে প্রবেশ করে। এগুলো ধ্বংস হয় না । তাই এগুলো মাছের মাধ্যমে পরে মানুষের শরীরে প্রবেশ করে স্বাস্থ্যের ক্ষতি ঘটাতে পারে। এজন্য কয়েকবছর আগেই মাছের খাবার হিসেবে মুরগির বিষ্ঠা নিষিদ্ধ করেছে সরকার।''

কিন্তু এরপরও কেন এই পদ্ধতির ব্যবহার হচ্ছে জানতে চাইলে মি. গোলজার বলেন, ''অনেকে এখনো গোপনে এটা করছে। আমরা জানতে পারলে সঙ্গে সঙ্গেই ব্যবস্থা নিয়ে থাকি।''

এরপরে আরো কয়েকটি খামার ঘুরে দেখা যায় মাছের খাদ্য হিসেবে বিভিন্ন কোম্পানির তৈরি করা ''ফিশ ফিড'' ব্যবহার হচ্ছে।

যেগুলো মূলত: ভুট্টা, খৈল, হাড়ের গুড়া, ধানের কুড়া, শুটকিসহ বিভিন্ন উপাদানের মিশেলে তৈরি করা হয়।

তবে এসব খামারে আরো দেখা যায়, মাছের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে কিংবা রোগ-বালাই সারাতে খামারিরা বিভিন্ন ওষুধও ব্যবহার করেন।

যেগুলোর মধ্যে সিপ্রোফ্লক্সাসিনের মতো এন্টিবায়োটিকও আছে।

খামারিরা যে সবসময় এসব ওষুধ ব্যবহার করেন এমন নয়।

তবে যখন ব্যবহার করেন, তখন অনেক সময় নিজেদের ইচ্ছেমতো কিংবা ফিশ ফিড কোম্পানির প্রতিনিধিদের পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করেন তারা।

মোস্তাফিজ রাজু নামে একজন খামার মালিক বলেন, ''আমরা তো পটাশ, কিংবা চুন ব্যবহার করি পানি ঠিক রাখার জন্য। আর ওষুধ বা এন্টিবায়োটিক দরকার হলে ব্যবহার করি। কোম্পানির লোকেরা আসে, তারা বলে কিভাবে কতটুকু ব্যবহার করতে হবে। অনেকসময় অন্য অভিজ্ঞ খামারিদের পরামর্শ নেই।''

মুস্তাফিজ জানান, তার এলাকায় খাদ্য অধিদপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসা কর্মকর্তা আসেন না তিনিও অধিদপ্তরে কোন পরামর্শের জন্য যান না।

তবে এভাবে ওষুধ ব্যবহারে ঝুঁকি আছে বলে জানাচ্ছেন মৎস্যবিজ্ঞানীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্যবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ওয়াহিদা হক বলছিলেন,

''বাংলাদেশে মাছের যেসব ওষুধ আসে সেগুলো মূলত: বিদেশ থেকে আসে। এগুলো কোন মাত্রায় ব্যবহার হবে তার নির্ধারিত কোন স্ট্যান্ডার্ড কিন্তু সেভাবে ঠিক করা নেই। চাষিরা অনেকসময় মাছের দ্রুত বৃদ্ধির জন্য কিংবা চিকিৎসার জন্য হরমোন ব্যবহার করেন, এন্টিবায়োটিকও দেন।''

''উদ্দেশ্য যেটাই হোক ওষুধের মাত্রাটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখানে হেরফের হলে তা স্বাস্থ্য ঝুঁকির কারণ হতে পারে। এজন্য এক্ষেত্রে অবশ্যই সরকারি চিকিৎসা কর্মকর্তাদের পরামর্শ ও নজরদারি থাকা উচিত।''

তবে মৎস্যবিজ্ঞান অধিদপ্তর অবশ্য বলছে, তারা সব এলাকাতেই নিয়মিত মনিটরিং করে থাকেন।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গোলজার হোসেন জানান, ''মাছের খাবার যারা বানায় আমরা সেগুলো নিয়মিত পরীক্ষা করি। ক্ষতিকর কিছু কিংবা প্রয়োজনীয় উপাদান না পেলে ব্যবস্থা নেই। এছাড়া বিভিন্ন এলাকায় মাছের খামারিদের নিয়ে নিয়মিত সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান করা হয়। খাবার এবং ওষুধ কিভাবে, কোন পরিমাণে দিতে হবে তা বলে দেয়া হয়।''

তবে সব এলাকাতেই যে সবসময় নজরদারি সম্ভব হয় না সেটাও স্বীকার করেন তিনি।

এজন্য অবশ্য জনবলের অভাবকেই দায়ী করেন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক।

Source: https://www.bbc.com/bengali/news-44927422

7
ঢাকা থেকে অস্ট্রেলিয়ার ভিসা অফিস দিল্লিতে স্থানান্তর

অস্ট্রেলিয়া সরকার ঢাকা থেকে ভিসা অফিস নয়াদিল্লিতে স্থানান্তর করেছে। এখন থেকে নয়াদিল্লিতে অস্ট্রেলিয়া মিশন বাংলাদেশিদের ভিসা, ইন্টারভিউ এবং কনস্যুলার সংক্রান্ত অন্যান্য সেবা প্রদান করবে। আজ বৃহস্পতিবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে বলে জানা গেছে। ঢাকায় অস্ট্রেলিয়া হাইকমিশন মনোনীত ভিএফএস সেন্টার কেবলমাত্র ভিসা আবেদন গ্রহণ করবে। নয়াদিল্লিতে ভিসার ব্যাপারে সিদ্ধান্তের পর এই সেন্টার পাসপোর্ট ডেলিভারি দেবে।


 
উল্লেখ্য বেশ কয়েকবছর আগেই যুক্তরাজ্য ও কানাডা ঢাকা থেকে ভিসা সেন্টার সরিয়ে নেয়। যুক্তরাজ্য নয়াদিল্লিতে এবং কানাডা সিঙ্গাপুরে ভিসার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, অস্ট্রেলিয়া সরকারের ইমিগ্রেশন বিভাগ আঞ্চলিক ভিত্তিতে কয়েকটি দেশের জন্য একটি ভিসা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেয়। ব্যয় সংকোচনই এর কারণ বলে জানা গেছে। তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মনে করে, বাংলাদেশিদের ভিসা পেতে কোনো সমস্যা হবে না। খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান সরকার সর্বত্র ইলেক্ট্রনিক ভিসা বা ই-ভিসা প্রবর্তন করতে যাচ্ছে। এটি পুরোপুরি কার্যকর হয়ে গেলে কোনো বাংলাদেশির পাসপোর্ট দিল্লি পাঠানোর প্রয়োজন হবে না। তারা ঘরে বসেই ই-মেইলে বারকোডসহ ভিসা পাবেন।


8
আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে (আইএমও) অবশেষে সোনার পদক পেল বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে (আইএমও) অবশেষে সোনার পদক পেল বাংলাদেশ। রোমানিয়ার ক্লুজ-নাপোকা শহরে ৫৯তম আইএমওতে দেশের জন্য প্রথম সোনার পদকটি জিতেছে চট্টগ্রাম ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থী আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী। সে ৪২ নম্বরের মধ্যে পেয়েছে ৩২। দক্ষিণ এশিয়ার জন্য এ বছর আইএমওতে এটাই একমাত্র সোনা।
বাংলাদেশ দলের অপর তিন সদস্য তাহনিক নূর সামিন (২৩ নম্বর), জয়দীপ সাহা (১৯ নম্বর) ও তামজিদ মুর্শেদ রুবাব (১৮ নম্বর) পেয়েছে ব্রোঞ্জ পদক। অপর দুই সদস্য রাহুল সাহা ও সৌমিত্র
দাস সম্মানজনক স্বীকৃতি অর্জন করেছে। মোট ১১৪ নম্বর পেয়ে ১০৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৪১তম। গতকাল বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের ওয়েবসাইটে পুরস্কার–বিজয়ীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।
এবার ২১২ নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়া ফেডারেশন (২০১) ও চীন (১৯৯) যথাক্রমে দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ১৩২ নম্বর নিয়ে ভারত রয়েছে শীর্ষে। তিনটি রুপা ও দুটি ব্রোঞ্জ পেলেও ভারতের শিক্ষার্থীরা কোনো সোনার পদক পায়নি। এ ছাড়া শ্রীলঙ্কা (৪৭), পাকিস্তান (৩৫), মিয়ানমার (২৩) ও নেপালের (৫) অবস্থান যথাক্রমে ৭২, ৮০, ৮৫ ও ১০৫।
১১৬টি দেশ নিবন্ধন করলেও শেষ পর্যন্ত ১০৭টি দেশের ৫৯৭ জন শিক্ষার্থী অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়েছে। তাদের মধ্যে বাংলাদেশের জাওয়াদ চৌধুরীর অবস্থান ২৭তম। এ বছর এশিয়ার দেশগুলোর তুলনায় ইউরোপের দেশগুলো অপেক্ষাকৃত ভালো করেছে।
দীর্ঘ ১৪ বছরের ক্রমাগত উৎকর্ষের মাধ্যমে বাংলাদেশ এবার সোনার পদক পেল। এই সময়ে বাংলাদেশের অর্জন একটি সোনা, ছয়টি রৌপ্য পদক, ২২টি ব্রোঞ্জ ও ২৭টি সম্মানসূচক স্বীকৃতি।
প্রথম আলোতে সাপ্তাহিক ক্রোড়পত্র বিজ্ঞান প্রজন্ম পাতায় ২০০১ সালে ‘নিউরনে অনুরণন’ নামে প্রথম গণিত অলিম্পিয়াডের কার্যক্রম শুরু হয়। পরে ২০০৩ সালে অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি আয়োজকের দায়িত্ব নেয়। সেই থেকে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় প্রতিবছর সারা দেশে গণিত উৎসবের আয়োজন করা হচ্ছে। আর নির্বাচিতরা আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে যোগ দিচ্ছে ২০০৫ সাল থেকে।
এবারের সোনাজয়ী বাংলাদেশের জাওয়াদ চৌধুরী গত বছর আইএমওতে রৌপ্য পদক পেয়েছিল। সেবার এক নম্বরের জন্য হাতছাড়া হয়েছিল স্বর্ণপদক। দেশের পক্ষে প্রথম সোনার পদক জয় করে সে নিজের সাফল্যে খুবই খুশি। পরিশ্রম ও লেগে থাকাই তার সাফল্যের মূল বলে সে মনে করে। শিক্ষার্থীদের সাফল্যে আনন্দিত দলের কোচ ড. মাহবুব মজুমদার। তিনি বলেন, আজকের এই অর্জনের পেছনে ধারাবাহিকতা ছিল।

বাংলাদেশ গণিত দলের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী। তিনি গণিত অলিম্পিয়াডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, এ অর্জন ভবিষ্যতে দেশের শিক্ষার্থীদের গণিতের প্রতি আরও উৎসাহিত ও দক্ষ করবে।
গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহসভাপতি অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা অনেক দিন থেকে একটা সোনার জন্য অপেক্ষা করছিলাম, সেটি এখন আমাদের হাতে এসেছে। আমি জানি, এখন থেকে আসতেই থাকবে। আমার মনে হচ্ছে পথের ধারে একটা ছোট গাছের চারা লাগিয়েছিলাম, সবাই সেই গাছের চারাটি বুক আগলে রেখেছে, হঠাৎ করে তাকিয়ে দেখি সেই ছোট চারাটি কত বড় একটি গাছ হয়ে গেছে।’
বাংলাদেশের খুদে গণিতবিদদের এই অর্জন জাতি হিসেবে বাংলাদেশকে গৌরবের পথে এগিয়ে নেবে বলে মনে করেন গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য ও বুয়েটের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ।
শুরু থেকেই গণিত অলিম্পিয়াডে পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক। ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন আহমদের উৎসাহী উদ্যোগে এই যুক্ততা শুরু হয়েছিল। সোনা জয়ের খবরে তিনি প্রথম আলোর কাছে তাঁর উচ্ছ্বাস ও আনন্দ প্রকাশ করেন।
গণিত দলের সোনা জয়ের খবর পেয়ে মনটা আনন্দে ভরে ওঠে বলে জানান ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মোহাম্মদ শিরিন। তিনি মনে করেন, এ অর্জন জাতির জন্য এক বিরাট সম্মান বয়ে আনবে। নতুন প্রজন্ম আমাদের চেয়ে অনেক মেধাবী, এই অর্জন তারই প্রমাণ। ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক বরাবরের মতো গণিত অলিম্পিয়াডের সঙ্গে থাকবে।
সোনাজয়ী আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরীর বাড়ি চট্টগ্রামে। ছেলের অর্জনের খবর শুনে আনন্দে কেঁদে ফেলেন তার মা সৈয়দা ফারজানা খানম। তিনি বলেন, ‘প্রথম আলো থেকে ফোন করে আমাকে ছেলের এ অনন্য অর্জনের বিষয়টি জানানো হয়। মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।’

Source: http://www.prothomalo.com/bangladesh/article/1531751/%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A5%E0%A6%AE-%E0%A6%B8%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE

9
একুশ শতকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টগুলোর লক্ষ্য যেমন হওয়া উচিত: প্রযুক্তির প্রয়োগ

আধুনিক যুগ হচ্ছে তথ্য-প্রযুক্তি এবং ইন্টারনেটের যুগ। Structural, Materials, Transportation এবং Environmental Engineering এ নতুন নতুন প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগতে শুরু করেছে। মজার কথা হচ্ছে, ১৯৫০ সালের দিকে যখন কম্পিউটারের উন্নতি হওয়া শুরু করেছিলো, তখন সিভিল ইঞ্জিনিয়াররা  সবচেয়ে বেশি এটা ব্যবহার করেছে, নতুন নতুন সফটওয়ার তৈরি করেছে উঁচু উঁচু বিল্ডিং ডিজাইন করার জন্য। এমনকি সেসময় Finite Element প্রযুক্তির গুরুত্ব বুঝে সেটা নিয়ে সেসময়ের সবচেয়ে আধুনিক গবেষণা করেছিলো সিভিল ইঞ্জিনিয়াররাই। কম্পিউটারের গণনার ক্ষমতা যত বেড়ে যেতে লাগলো, ততই সেই ক্ষমতা নিজেদের গবেষণার জন্য ব্যবহার করা শুরু করেছিলো পুরকৌশল বিভাগের শিক্ষক এবং গবেষকরা। তখনকার সময়ের ইঞ্জিনিয়াররা নতুন প্রযুক্তিকে নিজেদের কাজে বেঁছে নিয়েছিলো বিধায় নতুন কিছু তৈরি করতে পেরেছিলো তারা। পঞ্চাশ এবং ষাটের দশকে অনেকের ডক্টরাল থিসিস হতো Computerized High Rise Building নিয়ে।

বর্তমানে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাথে যে যে বিষয়গুলোকে এক করা যেতে পারে সেগুলো হচ্ছে- তথ্য প্রযুক্তি, ন্যানো প্রযুক্তি, জৈব প্রযুক্তি এবং সেন্সর প্রযুক্তি। ম্যাটেরিয়াল (Material Engineering) বিষয়টি পুরকৌশল বিভাগের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এখনও কংক্রিট এবং স্টিল ম্যাটেরিয়াল নিয়ে যেসব গবেষণা করা হচ্ছে সেগুলোর সবগুলো খুব বেশি উন্নতমানের নয়। ভালো গবেষণার মধ্যে এসব ম্যাটেরিয়াল একধরনের গবেষণা এখন হচ্ছে আর তা হচ্ছে- ইট, পাথর ইত্যাদি কমে যাওয়ার কারণে এগুলোর বদলে অন্য আর কী ম্যাটেরিয়াল Aggregate হিসেবে কংক্রিটে ব্যবহার করে এর শক্তি বাড়ানো যায় এবং সেগুলো দালান কোঠা তৈরিতে ব্যবহার করা যায়। আরেকটি কাজ হচ্ছে কংক্রিটকে অনেক দিনের জন্য টেকসই এবং মজবুত (Durability) কীভাবে করা যায় এবং রাস্তায় ছিদ্রযুক্ত (Porous) কংক্রিট ব্যবহার করে কীভাবে মাটির নিচের জমা হওয়া পানির পরিমাণ  (Ground Water Table) বাড়ানো যায়।



এগুলো গবেষণার সবই হচ্ছে Sustainability এর কথা মাথায় রেখে। কিন্তু এখানে প্রযুক্তির ছোঁয়া কম। ম্যাটেরিয়াল নিয়ে আরও উন্নত গবেষণা করা সম্ভব, যেমন- নতুন কোনো ম্যাটেরিয়াল নিয়ে আমরা কাজ করতে পারি যেটা হবে হালকা, মজবুত এবং ভারবাহী। ম্যাটেরিয়াল বিষয়ের মধ্যে ন্যানো প্রযুক্তি ঢুকিয়ে এর গবেষণার পরিসরকে আরও বিস্তৃত করা সম্ভব।

স্মার্ট ফাইবার এবং কার্বন ন্যানোটিউব নিয়ে কাজ করে হালকা, মজবুত, শক্ত, বিস্ফোরণেও যার কিছু হবে না এমন ম্যাটেরিয়াল তৈরি নিয়ে গবেষণা করা যেতে পারে, যেগুলো পরবর্তীতে উঁচু ইমারত তৈরিতে ব্যবহার করা সম্ভব। এ ধরনের গবেষণার ফলে অনেকগুলো নতুন নতুন বিষয় বের হয়ে আসবে। যেমন- উঁচু দালানকোঠা কিংবা বড় ব্রিজগুলোর উপর বিভিন্ন দিক থেকে আসা  বল এবং চাপ বহন করার সামর্থ্য কতটুকু তা নিয়ে কাজ করা, অবকাঠামোর উপাদানগুলোকে কীভাবে আরও হালকা করা যায় এবং এসব নির্মাণে কীভাবে আরও খরচ কমানো যায় সেসব নিয়ে নতুন করে গবেষণা করা সম্ভবপর হবে।

অবকাঠামোগুলোর স্বাস্থ্য পরীক্ষা (Structural Health Monitoring) একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বলে মনে করা হয়। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে I-35W ব্রিজ এবং আমাদের দেশের রানা প্লাজার ভেঙে যাওয়ার পর ব্যাপারটি নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে। এই Health Monitoring বা স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে হলে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার জানতে হবে। অবকাঠামোর গায়ে সেন্সর লাগিয়ে দিলে এই কাজটি সহজেই করা যায়। এই সেন্সর লাগানোর ফলে অবকাঠামোর কোথায় কতটুকু ফাটল ধরছে বা পরবর্তীতে কতটুকু ধরতে পারে, কাঠামোর উপর কী কী ধরনের এবং কী পরিমাণের ভার এবং চাপ আসছে, অবকাঠামোর উপাদানগুলোর স্থায়িত্ব আর কতদিনের, কবে কাঠামোটিকে নতুন করে ঠিক করতে হবে এসব বিষয় সেন্সর প্রযুক্তির মাধ্যমে সহজেই বের করা যায়।

এসব সেন্সর তৈরিতে সিভিল ইঞ্জিনিয়াররা সাহায্য করতে পারে, এসব সেন্সর কোনো কাঠামো সম্পর্কে যে যে তথ্য সিগন্যাল হিসেবে পাঠাবে সেগুলোর উপাত্ত বা ডাটা বিশ্লেষণ করে নতুন নতুন গবেষণা করা সম্ভব। এমনকি এসব বিশ্লেষণ করে বাস্তবে প্রয়োগ করাও সম্ভব। ২০০৭ সালে ওহাইও স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ে এ নিয়ে একটি গবেষণা হয়, যেখানে দেখানো হয় যে কীভাবে Pseudospectra, Multiple Signal Classification Method এবং Dynamic Neural Network দিয়ে কোনো উঁচু ইমারতের কোথায় কী ধরনের ক্ষতি হয়েছে সেগুলো শনাক্ত করা যায়। পরে এ নিয়ে আরও গবেষণা হয়েছে এবং হচ্ছে।

ভবিষ্যতে যে স্মার্ট অবকাঠামো তৈরি হবে সেগুলোর ভেতর থাকবে Actuator, Sensor এবং Computers। ভারী ভারী ম্যাটেরিয়াল হয়তো ব্যবহার করা হবে না। তার বদলে এগুলো ব্যবহৃত হবে। সেই অবকাঠামোতে Actuator কাজ করবে কম্পিউটারের মাধ্যমে, যেখানে স্মার্ট এলগরিদম তৈরি করে দেয়া থাকবে এবং সেই এলগরিদমের মাধ্যমে Actuator নিজে বাইরে থেকে আসা চাপ এবং বলের বিরুদ্ধে কীভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাবে সেটা ঠিক করবে। এখানে সেন্সর থাকবে যেটা সর্বক্ষণ অবকাঠামোর চারপাশে বাতাসের গতিবেগ, ভূমিকম্পের ত্বরণ ইত্যাদি আরও নানা বিষয় যেগুলো একটি অবকাঠামো নির্মাণের সময় ডিজাইনে ধরতে হয় সেগুলো নিজে থেকে টের পাবে।

এসব তৈরি করার জন্য যে যে জ্ঞান দরকার সেটা একজন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারকে জানতে হবে এবং সেটা দিয়ে এরকম জিনিস তৈরি করে বাস্তবে প্রয়োগ করতে হবে। যারা উদ্যোক্তা হতে চায় তারাও এসব বিষয়ে জ্ঞান লাভ করে পড়াশোনার পরে নিজেদের ব্যবসা খুলে বসতে পারে। অর্থাৎ মূল কথা হচ্ছে, প্রযুক্তিকে যদি আমরা নিজেদের পড়াশোনার বিষয়ের ভেতর গ্রহণ করি এবং প্রয়োগ করি, তার ফল কখনই খারাপ হবে না, বরং নতুন নতুন আরও কিছু কাজের সুযোগ সন্ধান চলে আসবে।

পরিবেশবিদ্যাতে দূষণ এবং দূষক শনাক্ত করতে Biosensor এর বিকল্প নেই। বড় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এসব নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। কোথাও যদি শারীরিক, জৈবিক এবং রাসায়নিক পরিবর্তন হয় তাহলে Biosensor খুব সহজে সেই পরিবর্তনটুকু বুঝতে পারে। Biosensor যে এই পরিবর্তনটি বুঝতে পারলো সেটা এর থেকে পাওয়া সিগন্যালকে বিশ্লেষণ করলে খুব সহজেই বোঝা যায়। Biosensor যেটা শনাক্ত করলো সেটা Transducer এর মাধ্যমে বিশ্লেষণযোগ্য একধরনের সিগন্যালে রূপান্তর করা হয় এবং সেই রুপান্তরিত সিগন্যালগুলো গাণিতিকভাবে বিশ্লেষণ করলে সেই পরিবর্তনগুলো বোঝা যায়। অনেক ধরনের Biosensor আছে, যেমন- DNA sensors, Quartz-based  Piezoelectric Oscillators, Surface Acoustic Wave Detectors ইত্যাদি। এই সেন্সর প্রযুক্তি দিয় Transportation Engineering এ বড় বড় সব কাজ করা হচ্ছে, যেটা পরবর্তী পর্বে আলোচনা করা হবে।

অনেকের ধারণা যে, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা করলে সেখানে প্রযুক্তির কোনো প্রয়োগ নেই। এই কথাটি একদম ভুল। এর বিভিন্ন বিষয়ে প্রযুক্তির কী পরিমাণ মিশেল ঘটতে পারে সেটা উপরের আলোচনা থেকেই বোঝা যাচ্ছে। পৃথিবীর অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাসগুলোতে এসব নিয়ে আলোচনা করা হয় না এবং শিক্ষার্থীদের এসব নিয়ে পড়ানোও হয় না। এমনকি আমাদের দেশেও না। তাই আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হলে আমাদেরকে নতুন নতুন যা কিছু তৈরি হচ্ছে এবং চারদিকে যা ঘটছে সেগুলো সিলেবাসের ভিতর আনতে হবে। এর ফলে শিক্ষার্থীরা যেমন উপকারী হবে, ঠিক তেমনি একজন শিক্ষক এবং গবেষকও নিজের গবেষণা করার সুযোগ পাবেন, বিশ্বকে তার গবেষণা দিয়ে নতুন কিছু দিতে পারবেন।

Source: https://roar.media/bangla/main/tech/vision-of-civil-engineering-department-in-21st-century-embracing-new-technology-part-two/

10
গ্রামীণফোন ও ব্যাংক এশিয়া মিলে আনল ডিভাইস ফিন্যান্সিং সুবিধা

গ্রাহকদের ফোরজি হ্যান্ডসেট ক্রয়ে সহায়তা দিতে ডিভাইস ফিন্যান্সিং স্কিম ‘লোন দিয়ে ফোন’ সুবিধা নিয়ে এসেছে গ্রামীণফোন ও ব্যাংক এশিয়া। এ স্কিমের আওতায় গ্রাহকরা ব্যাংক এশিয়ার সহজ ঋণ সুবিধা নিয়ে ফোরজি ফোন কিনে নয় মাসের কিস্তিতে ঋণ পরিশোধ করার সুযোগ পাবেন। গতকাল মিরপুরে গ্রামীণফোন সেন্টারে এ ফিন্যান্সিং স্কিম চালু করা হয়।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বাংলাদেশে মাত্র ১৯ শতাংশ মানুষ ব্যাংকিং সুবিধা ভোগ করে। ডিভাইস ফিন্যান্সিং সুবিধা এখানে সম্পূর্ণ নতুন ধারণা। দেশে ব্যাংক থেকে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা ব্যক্তিগত ঋণ গ্রহণ করা যায়। গ্রামীণফোন ও ব্যাংক এশিয়া নতুন এ উদ্যোগ গ্রহণের ফলে এখন হ্যান্ডসেট কেনার জন্য এ পরিসীমার নিচেও ঋণ গ্রহণ করা যাবে।

এ বিষয়ে গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ও সিএমও ইয়াসির আজমান বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে গ্রামীণফোন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছে। আমাদের গ্রাহকদের কাছে স্মার্টফোনের সহজলভ্যতা ইন্টারনেট ও ডিজিটাল সেবার পূর্ণ সুবিধা লাভ করার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চাহিদা অনুযায়ী মানসম্পন্ন স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের অনেক সময় আর্থিক সহায়তা দরকার হয়। সুবিধাবঞ্চিত সমাজ এবং সবচেয়ে প্রয়োজনীয় জিনিসের সঙ্গে গ্রাহকদের সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে সামাজিক ক্ষমতায়নের যে প্রতিশ্রুতি আমাদের রয়েছে, তার কথা মাথায় রেখে গ্রামীণফোন ও ব্যাংক এশিয়া এ অফার নিয়ে এসেছে।

ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মুহাম্মদ জহিরুল আলম বলেন, ‘দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অবস্থিত সুবিধাবঞ্চিতদের আনুষ্ঠানিক আর্থিক ও ডিজিটাল সেবা গ্রহণে সুবিধাদানের ক্ষেত্রে এ উদ্যোগ দেশের ভিন্ন ব্যবসায়িক খাতের স্বনামধন্য দুটি প্রতিষ্ঠানের জন্যই একটা বিশাল সুযোগ। আর্থিক ও ডিজিটাল অন্তর্ভুক্তি অর্জনে এটা খুবই অভিনব একটা উদ্যোগ।

Source: http://bonikbarta.net/bangla/news/2018-07-05/163207/%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A7%80%E0%A6%A3%E0%A6%AB%E0%A7%8B%E0%A6%A8-%E0%A6%93-%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%95-%E0%A6%8F%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE-%E0%A6%AE%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%A8%E0%A6%B2-%E0%A6%A1%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B8-%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%82-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A7%E0%A6%BE/

11
Software Engineering / Cyber attacks can cost firms $1.75tr
« on: July 02, 2018, 02:00:04 PM »
Cyber attacks can cost firms $1.75tr

The potential economic loss across the Asia Pacific due to cybersecurity incidents can hit a staggering $1.745 trillion, a study said.

This is more than 7 percent of the region's total gross domestic product of $24.3 trillion, a Frost & Sullivan study commissioned by Microsoft revealed.

The study—Understanding the cybersecurity threat landscape in the Asia Pacific: securing the modern enterprise in a digital world—involved a survey conducted with 1,300 business and IT decision-makers from 13 markets.



The markets are Australia, China, Hong Kong, Indonesia, India, Japan, Korea, Malaysia, New Zealand, the Philippines, Singapore, Taiwan and Thailand, said Microsoft in a statement yesterday.

More than half of the organisations surveyed for the study have either experienced a cybersecurity incident or are not sure if they had one as they have not performed proper forensics or data breach assessment.

As companies embrace the opportunities presented by cloud and mobile computing to connect with customers and optimise operations, they take on new risks, said Eric Lam, director for enterprise cybersecurity group at Microsoft Asia.

“With traditional IT boundaries disappearing, the adversaries now have many new targets to attack. Companies face the risk of significant financial loss, damage to customer satisfaction and market reputation -- as has been made all too clear by recent high-profile breaches.”

A large-sized firm in the Asia Pacific can possibly incur an economic loss of $30 million, more than 300 times higher than the average economic loss for a mid-sized organisation, according to the study.

Cybersecurity attacks have resulted in job losses across different functions in 67 percent of the organisations that have experienced an incident over in last 12 months.

Although the direct losses from cybersecurity breaches are most visible, they are just the tip of the iceberg, said Edison Yu, head of enterprise for Asia Pacific at Frost & Sullivan, a business consulting firm based in Texas.

“There are many other hidden losses that we have to consider from both the indirect and induced perspectives, and the economic loss for organisations suffering from cybersecurity attacks can be often underestimated.”

In addition to financial losses, cybersecurity incidents are also undermining Asia Pacific firms' ability to capture future opportunities in today's digital economy, with one in six respondents stating that their enterprise has put off digital transformation efforts due to the fear of cyber-risks.

Although high-profile cyber attacks, such as ransomware, have been garnering a lot of attention from enterprises, the study found.

The firms in the Asia Pacific that have encountered cybersecurity incidents, fraudulent wire transfer, data corruption, online brand impersonation, and data exfiltration are the biggest concern as they have the highest impact with the slowest recovery time.

The research found despite encountering a cyber attack, only one in four firms consider cybersecurity before the start of a digital transformation project as compared to one in three organisations that have not encountered any cyber attack.

The rest of the firms either think about cybersecurity only after they start on the project or do not consider it at all.

“This limits their ability to conceptualise and deliver a secure-by-design project, potentially leading to insecure products going out into the market.”

The study has shown that 41 percent respondents see cybersecurity strategy only as a means to safeguard the organisation against cyber attacks rather than a strategic business enabler.

A mere 20 percent of companies see cybersecurity strategy as a digital transformation enabler.

According to the report, artificial intelligence (AI) is becoming a potent opponent against cyber attacks as it can detect and act on threat vectors based on data insights.

The study reveals that 75 percent of organisations in the Asia Pacific have either adopted or are looking to adopt an AI approach towards boosting cybersecurity.

“An AI-driven cybersecurity architecture will be more intelligent and be equipped with predictive abilities to allow organisations to fix or strengthen their security posture before problems emerge.”

The study called for positioning cybersecurity as a digital transformation enabler.

It advised to continue investing in strengthening security fundamentals as more than 90 percent of cyber incidents can be averted by maintaining the most basic best practices.

Source: https://www.thedailystar.net/business/cyber-attacks-can-cost-firms-175tr-1597033

12
Cyber Security / Threats of the unseen kind
« on: July 02, 2018, 01:56:07 PM »
Threats of the unseen kind
[/b]

A budding computer scientist pursuing a PhD at the McMaster University, Canada recently wrote a blog post on the increasing human capacity for self-destruction enabled by science. First, it was the atomic bomb created by physicists, then it was the nerve gas created by chemists, and now the neural networks created by cyber nerds that pump enormous power into artificial intelligence bots—bots that can take over our lives, manipulate our behaviour, and pretty much get us to do anything they please.

The atomic bombs have captured our imagination for almost 70 years since the US bombing of Hiroshima and Nagasaki in 1945 due to their massive destructive power (a single hydrogen bomb has the power to level a mega city of several million people). Nerve gas and other chemical weapons only came to light after the horrific results of such weapons used by the US on innocent civilians during the Vietnam War. Chemical weapons don't create a bang as big as atomic weapons but their impact on human lives is just as deadly or may be even worse.

Because of their deadly and inhuman effects on people, the UN has placed a universal ban on such weapons but people in general are still not as fascinated by chemical weapons as they are by atomic weapons.

Now rogue cyber systems leveraging the computational prowess of computer processors that are growing geometrically from year to year and self-learning artificial intelligence programmes known as machine learning systems are weaponising a threat of a previously unseen kind—threats that most people associate with science fiction movies like the Terminator sequels. Notwithstanding the common perception to the contrary, such threats are real although most of us don't realise that a Terminator-movie-like Skynet is a distinct possibility in the near future.

What is more alarming is that criminal minds combining forces with cyber techies can swoop down on any computer system anywhere in the world stealing and/or mutating personal, financial, medical, property, government and utility databases and leave billions of dollars' worth of damage in its wake. Such cybercrimes are happening all the time, and what's disconcerting is that these crimes are most often perpetrated from outside our borders.

The hacking of sensitive government sites happens almost every other month and most of the time the damage is not assessed or made public. The 2016 cyber heist of Bangladesh Bank funds from the Federal Reserve Bank of New York came to light many months later only after a hue and cry at the Philippines parliament got reported in the press. Aside from the central bank, a recent assessment of the commercial banks, as reported in this paper, found them woefully unprepared to fend off a cyber attack. Our utilities are also not safe nor are the law enforcement and civil defence systems.

However, keeping our heads buried in the sand will not save us from cyber storms that are imperceptibly brewing as we speak. According to UN estimates, the world economy loses more than a trillion dollars to cybercrimes every year—that's more than 1 percent of the global GDP. Just because we can't see it does not mean cyber threats are not real. In fact, persistent cyber threats are the most common danger to our well-being as a citizen and as a nation.

While the government has lately paid heed to cyber threats and prepared a draft Cyber Security Act, the effort met with serious criticisms from civil liberties and human rights advocates as the proposed act purportedly contains provisions of discretionary authority to detain citizens and confiscate property without showing a probable cause. The criticisms are very serious in nature and deserve appropriate review by the cabinet and the parliament. However, we must also realise that a modern cyber security act along with its enforcement paraphernalia is a crying need of the hour and we must do everything possible to make that happen. We certainly must uphold human rights and protect citizens from unlawful detentions but at the same time we must not throw away the baby with the bathwater when dealing with cyber threats.

The draft Cyber Security Act is known to have proposed a cyber security council headed by the prime minister and a cyber security directorate headed by a civil servant. It is time the policymakers came to their senses and revised the proposal in line with modern constructs to effectively fend off cyber threats—threats that can literally wipe out 2-4 billion dollars' worth or 1-2 percent of GDP every year. First of all, civil or military services simply cannot produce an officer capable of addressing and managing the highly technical cyber security affairs, and that is true not just in Bangladesh but anywhere in the world. Secondly, with the kind of magisterial authority envisaged for the position, the head of the cyber security organ must be sanctioned by the constitution, or in other words, it must be a constitutional post like the C&AG.

Thirdly, in order to afford truly capable citizens engaged in such a service, the post needs to have compensations in line with the market demand for such positions. This constitutional post may be given an appropriate name signifying its authority and the rank and status of a State Minister. The position should be made answerable to the parliament and given appropriate legal mandates to exercise enforcement of the law with due process under the law of the land.

One of the routine functions of this new Office of the Cyber Security should be to make periodic cyber security sweeps of all key cyber installations such as the national data centre, Bangladesh Bank data centre, election commission data centre, passports and immigration data centre, submarine cable landing station, Bangabandhu satellite earth station and other such installations. The cyber security boss's office should also carry out cyber vulnerability checks under simulated cyber attacks and promulgate specific business continuity procedures in case of multi-source combined cyber attacks, or even state-sponsored cyber warfare. These kinds of threats are emerging all the time, and state-sponsored cyber bots like Stuxnet crippling nuclear installations in foreign countries are not the exception, but increasingly, the norm.

If a swarm of remotely piloted, weaponised drones attack us, then no conventional air force and missile defence can protect us. Only an appropriate cyber security response can ward off such an evil onslaught. Is this conceivable in the near future? Ask the thousands of children in Afghanistan, Syria and Palestine that have succumbed to such drone attacks in the last decade. Can we afford to equip ourselves and build intrinsic capacity to fend off such attacks? The real question is, can we afford not to?

Source: https://www.thedailystar.net/newspaper?date=2018-06-30

13
Global Mobile Robotics Software Market Report 2018 By SWOT Analysis

The new research from Global QYResearch on Global Mobile Robotics Software Market Report for 2018 intends to offer target audience with the fresh outlook on market and fill in the knowledge gaps with the help of processed information and opinions from industry experts. The information in the research report is well-processed and a report is accumulated by industry professionals and seasoned experts in the field to ensure of the quality of research.



The research is backed by extensive and in-depth secondary research which involves reference to various statistical databases, national government documents, relevant patent and regulatory databases, news articles, press releases, company annual reports, webcasts, financial reports, and a number of internal and external proprietary databases. This estimated data is cross-checked with industry experts from various leading companies in the market. After the entire authentication process, these reports are shared with subject matter experts (SMEs) for adding further value and to gain their insightful opinion on the research. With such robust process of data extraction, verification, and finalization, we firmly endorse the quality of our research. With such extensive and in-depth research and comprehensive coverage of information, it is always a possibility of clients finding their desired information in the report with enclosure of key components and valuable statistics in all regards.

This report focuses on the global top players, covered
ABB
Accelerated Dynamics X Ltd.
iRobot Corporation
Brain Corp
Aethon Inc.
Kawasaki Robotics
Asimov Robotics
KUKA AG
Energid Technologies Corporation
Liquid Robotics Inc.
EZ-Robot Inc.
Lockheed Martin
Fetch Robotics Inc.
Robotis
Geckosystems International Corp
Locus Robotics
Omron Adept Mobilerobots
Metrologic Group
Neurala


 
Market segment by Regions/Countries, this report covers
United States
Europe
China
Japan
Southeast Asia
India

Market segment by Type, the product can be split into
Aerial (UAV)
Ground
Marine

Market segment by Application, split into
Logistics
Healthcare
Inspection & Maintenance
Defense
Agriculture
Entertainment

Source: https://financialreporting24.com/global-mobile-robotics-software-market-report-2018-by-swot-analysis-strengths-weaknesses-opportunities-threatsand-forecasts-up-to-2025/

14
বনশ্রীর এটিএমে মিলছে বিনামূল্যে পানি
[/b]

রাজধানীর বনশ্রীতে বি ও সি ব্লকের মাঝামাঝি জায়গার ওয়াসার ১ নম্বর পানির পাম্পে এটিএম বুথ বসানো হয়েছে। বুথটির এটিএমে ৬ জুন থেকে পরীক্ষামূলকভাবে বিনামূল্যে পানি দেওয়া হচ্ছে। তবে কার্ডের মাধ্যমে আগামী জুলাই থেকে এই বুথ থেকে পানি সংগ্রহ করতে হবে।

জানা গেছে, বুথটিতে দুটি এটিএম রয়েছে। এখান থেকে প্রতি লিটার বিশুদ্ধ পানি ৪০ পয়সায় বিক্রি করা হবে। পানি নেওয়ার জন্য ২০০ টাকা ফেরতযোগ্য জামানত দিয়ে একটি কার্ড সংগ্রহ করতে হবে।

এই এটিএমে কার্ড-ব্যবস্থা চালু করতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। সে পর্যন্ত বিনামূল্যে পানি দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ওয়াসা সূত্র।



রামপুরা পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল মো. জুয়েল রানা জানান, ওয়াসার সরবরাহ লাইনের পানি ফুটিয়ে খেতে হয়। পানিতে দুর্গন্ধও থাকে। তবে এটিএম বুথের পানি পরিশোধিত।

Source: https://www.priyo.com/articles/free-water-in-the-banasree-tiat-matches-201806301026/

পানির বুথটি দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা মানিক অধিকারী জানান, ৬ জুন থেকে ওই এটিএমে বিনামূল্যে পানি দেওয়া হচ্ছে। তার কাছে একটি কার্ড আছে। সেটা দিয়ে এলাকাবাসীকে পানি দিচ্ছেন তিনি। তবে জুলাইয়ের প্রথম বা দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে গ্রাহকদের কার্ড দেওয়া হবে।

ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে পাওয়া অনুদানের মাধ্যমে ৩০টি পানির বুথ চালু করা হয়েছে বলে জানান এ প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঢাকা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ইয়ার খান।

15
ওয়্যারলেস ইন্টারনেট সরবরাহের ড্রোন প্রকল্প বাতিল করল ফেসবুক
বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশেগুলোর প্রত্যন্ত অঞ্চলে নিরবচ্ছিন্ন ওয়্যারলেস ইন্টারনেট সেবা দিতে ড্রোন প্রকল্প হাতে নিয়েছিল ফেসবুক। অর্থাৎ যাত্রীবাহী জেট বিমানের আকৃতির ড্রোনের মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশগুলোয় ইন্টারনেট সরবরাহের বিশেষ প্রকল্প হাতে নিয়েছিল সোস্যাল মিডিয়া জায়ান্টটি। তবে অনির্দিষ্ট কারণে এ প্রকল্প বন্ধ করা হয়েছে। ছাঁটাই করা হয়েছে ড্রোন প্রকল্পের কর্মীদেরও। খবর বিজনেস ইনসাইডার।

ফেসবুক গত মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানায়, ইন্টারনেট এখন মানুষের জীবনের অবিচ্ছেদ্দ্য অনুষঙ্গ। মোবাইল ডিভাইসের সহজলভ্যতার কারণে অনেক মানুষই এখন ইন্টারনেট সেবা ব্যবহারের সুযোগ পাচ্ছে। তবে বিশ্বের অনেক অঞ্চলে এখনো ইন্টারনেট সেবা পৌঁছায়নি। সুবিধাবঞ্চিত এসব অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা দিতে ড্রোন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছিল। এটি ফেসবুকের অত্যন্ত উচ্চাকাঙ্ক্ষী এবং হাই-প্রোফাইল উদ্যোগগুলোর অন্যতম। তবে ড্রোনের পরিবর্তে এখন ‘হাই অ্যালটিটিউড প্লাটফর্ম স্টেশন’ স্থাপনের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা সরবরাহে কাজ করা হচ্ছে।

Source: http://bonikbarta.net/bangla/news/2018-06-28/162407/%E0%A6%93%E0%A7%9F%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B8-%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%9F-%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B9%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%A1%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%AA-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%B2-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%B2-%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95/

Pages: [1] 2 3 ... 12