Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - mushfiq.swe

Pages: [1] 2 3 ... 7
1
Hadith / হাদীস শরীফে - পর্দা
« on: November 28, 2017, 11:49:29 PM »
পর্দা বিষয়ক কিছু হাদিস
১. আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,
নারী হল সতর তথা আবৃত থাকার বস্ত্ত। নিশ্চয়ই সে যখন ঘর থেকে  বের হয় তখন শয়তান তাকে মনোযোগ দিয়ে দেখতে থাকে। আর সে যখন গৃহাভ্যন্তরে অবস্থান করে তখন সে আল্লাহ তাআলার সবচেয়ে বেশি নিকটে থাকে।-আলমুজামুল আওসাত, তবারানী
এই হাদীস দ্বারা প্রতীয়মান হয় যে, বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া উচিত নয়।
২. আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-
ইহরাম গ্রহণকারী নারী যেন নেকাব ও হাতমোজা পরিধান না করে। (সহীহ বুখারী ৪/৬৩, হাদীস : ১৮৩৮)
কাযী আবু বকর ইবনে আরাবী বলেন, নারীর জন্য বোরকা দ্বারা মুখমন্ডল আবৃত রাখা ফরয। তবে হজ্বের সময়টুকু এর ব্যতিক্রম। কেননা, এই সময় তারা ওড়নাটা চেহারার উপর ঝুলিয়ে দিবে, চেহারার সাথে মিলিয়ে রাখবে না। পরপুরুষ থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখবে এবং পুরুষরাও তাদের থেকে দূরে থাকবে। (আরিযাতুল আহওয়াযী ৪/৫৬)
৩. আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-
যে ব্যক্তি অহঙ্কারবশত কাপড় ঝুলিয়ে রাখে কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাআলা তার দিকে (রহমতের দৃষ্টিতে) তাকাবেন না। তখন উম্মুল মুমিনীন উম্মে সালামা রা. জিজ্ঞাসা করলেন, তাহলে মহিলারা তাদের কাপড়ের ঝুল  কীভাবে রাখবে? রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, এক বিঘত ঝুলিয়ে রাখবে। উম্মে সালামা বললেন, এতে তো তাদের পা অনাবৃত থাকবে। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তাহলে এক হাত ঝুলিয়ে রাখবে, এর বেশি নয়। -সুনানে আবু দাউদ, হাদীস : ৪১১৭; জামে তিরমিযী ৪/২২৩; সুনানে নাসাঈ ৮/২০৯; মুসান্নাফ আবদুর রাযযাক ১১/৮২
ইমাম তিরমিযী বলেন, এই হাদীসে নারীর জন্য কাপড় ঝুলিয়ে রাখার অবকাশ দেওয়া হয়েছে। কারণ এটিই তাদের জন্য অধিক আবৃতকারী।
৪. ওকবা ইবনে আমের জুহানী রা.-এর সূত্রে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-তোমরা নারীদের নিকট যাওয়া থেকে বিরত থাক। এক আনসারী সাহাবী আরয করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! স্বামী পক্ষীয় আত্মীয় সম্পর্কে আপনি কী বলেন? তিনি বললে, সে তো মৃত্যু। -সহীহ বুখারী ৯/২৪২; সহীহ মুসলিম, হাদীস : ২১৭২; জামে তিরমিযী, হাদীস : ১১৭১; মুসনাদে আহমাদ ৪/১৪৯, ১৫৩
এই হাদীসে বেগানা নারী-পুরুষের একান্ত অবস্থানকে নিষেধ করা হয়েছে এবং এ প্রসঙ্গে স্বামী পক্ষীয় আত্মীয়-স্বজন যেমন দেবর-ভাসুর ইত্যাদির সাথে অধিক সাবধানতা অবলম্বনকে অপরিহার্য করা হয়েছে।
৫. হযরত আয়েশা রা. ইফ্কের দীর্ঘ হাদীসে বলেছেন-আমি আমার স্থানে বসে ছিলাম একসময় আমার চোখ দুটি নিদ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়ল এবং আমি ঘুমিয়ে পড়লাম। সফওয়ান ইবনে মুয়াত্তাল আসসুলামী ছিল বাহিনীর পিছনে আগমনকারী। সে যখন আমার অবস্থানস্থলের নিকট পৌছল তখন একজন ঘুমন্ত মানুষের আকৃতি দেখতে পেল। এরপর সে আমার নিকট এলে আমাকে চিনে ফেলল। কারণ পর্দা বিধান অবতীর্ণ হওয়ার আগে সে আমাকে দেখেছিল। সে তখন ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন বলে ওঠে, যার দরুণ আমি ঘুম থেকে জেগে উঠি এবং ওড়না দিয়ে নিজেকে আবৃত করে ফেলি।
অন্য রেওয়ায়েতে আছে, আমি ওড়না দিয়ে আমার চেহারা ঢেকে ফেলি।-সহীহ বুখারী ৫/৩২০; সহীহ মুসলিম, হাদীস : ২৭৭০; জামে তিরমিযী, হাদীস : ৩১৭৯
৬.  উম্মুল মুমিনীন উম্মে সালামা রা. বলেন, আমি একদা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নিকট ছিলাম। উম্মুল মুমিনীন মায়মুনা রা.ও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এমন সময় আবদুল্লাহ ইবনে উম্মে মাকতুম উপস্থিত হলেন। এটি ছিল পর্দা বিধানের পরের ঘটনা। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমরা তার সামনে থেকে সরে যাও। আমরা বললাম, তিনি তো অন্ধ, আমাদেরকে দেখছেন না?! তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমরাও কি অন্ধ? তোমরা কি তাকে দেখছ না?-সুনানে আবু দাউদ ৪/৩৬১, হাদীস : ৪১১২; জামে তিরমিযী ৫/১০২, হাদীস : ২৭৭৯; মুসনাদে আহমাদ ৬/২৯৬; শরহুল মুসলিম, নববী ১০/৯৭; ফাতহুল বারী ৯/২৪৮
৭. উম্মুল মুমিনীন আয়েশা রা. বলেন, আমরা যখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সাথে ইহরাম অবস্থায় ছিলাম তখন আমাদের পাশ দিয়ে অনেক কাফেলা অতিক্রম করত। তারা যখন আমাদের সামনাসামনি চলে আসত তখন আমাদের সকলেই চেহারার ওপর ওড়না টেনে দিতাম। তারা চলে গেলে আবার তা সরিয়ে নিতাম।-মুসনাদে আহমাদ ৬/৩০; ইবনে মাজাহ,
হাদীস: ২৯৩৫
এই হাদীস থেকে বোঝা যায়, পরপুরুষের সামনে চেহারা ঢেকে রাখা আবশ্যক।
৮. আসমা বিনতে আবু বকর রা. বলেন, আমরা পুরুষদের সামনে মুখমন্ডল আবৃত করে রাখতাম। ...-মুসতাদরাকে হাকেম ১/৪৫৪
এই হাদীস থেকে বোঝা যায়, সাহাবা-যুগের সাধারণ মহিলারাও গায়র মাহরাম পুরুষ থেকে নিজেদের চেহারা আবৃত করতেন। কারণ আসমা বিনতে আবি বকর রা. এখানে বহুবচন ব্যবহার করেছেন। যা প্রমাণ করে উম্মুল মুমিনগণ ছাড়া অন্য নারীরাও তাদের মুখমন্ডল আবৃত রাখতেন।
৯. ফাতিমা বিনতে মুনযির রাহ. বলেন, আমরা আসমা বিনতে আবু বকর রা.-এর সাথে ইহরাম অবস্থায় থাকাকালে আমাদের মুখমন্ডল ঢেকে রাখতাম।-মুয়াত্তা, ইমাম মালেক ১/৩২৮; মুসতাদরাকে হাকেম ১/৪৫৪
হযরত ওমর রা. থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-যখনই কোনো পুরুষ কোনো নারীর সাথে একান্তে সাক্ষাত করে তখন তাদের তৃতীয়জন হয় শয়তান।-জামে তিরমিযী
উম্মুল মুমিনীন আয়েশা রা. বলেন, একজন মহিলা পর্দার পিছন থেকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর হাতে একটি কাগজ দিতে চাইল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজ হাত গুটিয়ে নিলেন (কাগজটি নিলেন না এবং) বললেন, আমি জানি না, এটা কি পুরুষের হাত না নারীর। মহিলা আরজ করলেন, ‘নারীর হাত।’ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘তুমি যদি নারী হতে তাহলে নিশ্চয়ই নখে মেহেদী থাকত।’-সুনানে আবু দাউদ, সুনানে নাসায়ী
এই হাদীস থেকে বোঝা যায়, পীর-মুর্শিদ ও উস্তাদের সাথেও পর্দা করা অপরিহার্য।
হযরত উমাইমা বিনতে রুকাইকা রা. থেকে বাইয়াত সংক্রান্ত একটি দীর্ঘ হাদীসে আছে যে, নারীগণ বললেন, আল্লাহ ও তাঁর রাসূল আমাদের প্রতি আমাদের নিজেদের চেয়েও মেহেরবান। সুতরাং আপনার হাত মোবারক দিন, আমরা বাইয়াত হই। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আমি নারীদের সাথে হাত মিলাই না। (যা মুখে বলেছি তা মেনে চলাই তোমাদের জন্য অপরিহার্য)।-মুয়াত্তা মালিক
উম্মুল মুমিনীন আয়েশা রা. বলেন, আল্লাহর কসম! বাইয়াতের সময় তাঁর (নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর) হাত কখনো কোনো নারীর হাত স্পর্শ করেনি। তিনি শুধু মুখে বলতেন, তোমাকে বাইয়াত করলাম।-সহীহ বুখারী ২/১০৭১
হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন-
দুই শ্রেণীর দোযখী এখনও আমি দেখিনি। (কারণ তারা এখন নেই, ভবিষ্যতে আত্মপ্রকাশ করবে) এক শ্রেণী হচ্ছে ঐ সকল মানুষ, যাদের হাতে ষাঁড়ের লেজের মতো চাবুক থাকবে, যা দিয়ে তারা মানুষকে প্রহার করবে। (দ্বিতীয় শ্রেণী হচ্ছে) ঐ সকল নারী, যারা হবে পোশাক পরিহিতা, নগ্ন, আকৃষ্ট ও আকৃষ্টকারী; তাদের মাথা হবে উটের হেলানো কুঁজের ন্যায়। এরা জান্নাতে যাবে না এবং জান্নাতের খুশবুও পাবে না অথচ জান্নাতের খুশবু তো এত এত দূর থেকে পাওয়া যাবে।-মুসলিম ২/২০৫, হাদীস : ২১২৮
এই হাদীসে বেপর্দা নারীদের প্রতি কঠিন হুঁশিয়ারি শোনানো হয়েছে। সুতরাং তাদের মৃত্যুর আগেই তাওবা করে পর্দার বিধানের দিকে ফিরে আসা কর্তব্য।
উপরের আলোচনা থেকে জানা গেল যে, হাদীস শরীফে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে পর্দার বিধান দেওয়া হয়েছে। এই বিধান মেনে চলা সকল ঈমানদার নারী-পুরুষের জন্য অপরিহার্য।


http://www.alkawsar.com/topic/14?page=1

2
Quran / কুরআন শরীফে - পর্দার আয়াত
« on: November 28, 2017, 11:42:45 PM »
কুরআন শরীফে - পর্দার আয়াত সমূহ
নারী-পুরুষ উভয়ের পবিত্রতা রক্ষার অতি সহজ ও কার্যকর উপায় হল ইসলামের পর্দা বা হিজাব বিধান। এই বিধানের অনুসরণের মাধ্যমেই হৃদয়-মনের পবিত্রতা অর্জন করা সম্ভব। পর্দার এই সুফল স্বয়ং আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেছেন। ইরশাদ হয়েছে-
ذلكم اطهر لقلوبكم وقلوبهن
  এই বিধান তোমাদের ও তাদের অন্তরের জন্য অধিকতর পবিত্রতার কারণ। (সূরা আহযাব (৩৩) : ৫৩)

পর্দা একটি কুরআনী বিধান। কুরআন মজীদের অনেকগুলো আয়াত পর্দা সম্পর্কে নাযিল হয়েছে। পর্দা ইসলামের ঐসকল বিধানের অন্যতম, যেগুলোর বিভিন্ন দিক বিস্তারিতভাবে কুরআন মজীদে আছে। তেমনি হাদীস শরীফেও এর আরো দিক পরিষ্কারভাবে বর্ণিত হয়েছে। তো পর্দার বিধান হচ্ছে ইসলামের একটি অটল ও অকাট্য বিধান।
 সুতরাং কোনো ঈমানদারের পক্ষে এই বিধানকে হালকা মনে করার সুযোগ নেই। এখানে কয়েকটি আয়াত সংক্ষিপ্ত আলোচনাসহ তুলে ধরা হল।

এক.
يا ايها النبى قل لازواجك وبناتك ونساء المؤمنين ...
  হে নবী! আপনি আপনার স্ত্রীগণকে, কন্যাগণকে ও মুমিনদের নারীগণকে বলুন, তারা যেন তাদের চাদরের কিয়দংশ নিজেদের উপর টেনে দেয়। এতে তাদের চেনা সহজ হবে। ফলে তাদের উত্যক্ত করা হবে না। আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। (সূরা আহযাব : ৫৯)
আবদুল্লাহ ইবনে আববাস রা. উক্ত আয়াতের ব্যাখ্যায় বলেছেন, আল্লাহ তাআলা মুমিন নারীদেরকে আদেশ করেছেন যখন তারা কোনো প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হবে তখন যেন মাথার উপর থেকে ওড়না/চাদর টেনে স্বীয় মুখমন্ডল আবৃত করে। আর (চলাফেরার সুবিধার্থে) শুধু এক চোখ খোলা রাখে।-ফাতহুল বারী ৮/৫৪, ৭৬, ১১৪
ইবনে সীরিন বলেন, আমি (বিখ্যাত তাবেয়ী) আবীদা (সালমানী রাহ.)কে উক্ত আয়াত সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বললেন, কাপড় দ্বারা মাথা ও চেহারা আবৃত করবে এবং এক চোখ খোলা রাখবে।

দুই.
واذا سألتموهن فسئلوهن من وراء حجاب ...
তোমরা তাঁদের (নবী পত্নীদের) নিকট কিছু চাইলে পর্দার আড়াল থেকে চাও। এই বিধান তোমাদের ও তাদের হৃদয়ের জন্য অধিকতর পবিত্রতার কারণ। তোমাদের কারো জন্য আল্লাহর রাসূলকে কষ্ট দেওয়া সংগত নয় এবং তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর পত্নীদেরকে বিবাহ করা তোমাদের জন্য কখনো বৈধ নয়। আল্লাহর দৃষ্টিতে এটা ঘোরতর অপরাধ। (সূরা আহযাব (৩৩) : ৫৩)

এই আয়াত থেকেও বোঝা যায়, নারীর দেহের কোনো অংশই পর্দা-বিধানের বাইরে নয়। উম্মুল মুমিনীনগণের আমলও তা প্রমাণ করে।
এই আয়াতে যখন পর্দার বিধানকে সাহাবায়ে কেরাম ও উম্মুল মুমিনীনদের জন্যও অধিকতর পবিত্রতার উপায় বলা হয়েছে তখন উম্মতের আর কে আছে যে এই বিধানের বাইরে থাকতে পারে?

তিন.
قل للمؤمنت يغضنن من ابصارهن ويحفظن فروجهن ولا يبدين زينتهن الا ما ظهر منها
তরজমা : (হে নবী!) মুমিন নারীদেরকে বলুন, তারা যেন তাদের দৃষ্টিকে সংযত রাখে ও তাদের লজ্জাস্থানের হিফাযত করে। তারা যেন সাধারণত যা প্রকাশ থাকে তা ছাড়া নিজেদের আভরণ প্রদর্শন না করে। (সূরা নূর : ৩১)

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. থেকে সহীহ সনদে বর্ণিত আছে যে, ‘সাধারণত যা প্রকাশিত’ অর্থ হচ্ছে কাপড়।-তাফসীরে তাবারী ১৮/১১৯
এই ব্যাখ্যা অনুসারে প্রতীয়মান হয় যে, গায়রে মাহরাম পুরুষের সামনে নারীর মুখমন্ডলসহ পূর্ণ দেহ আবৃত রাখা অপরিহার্য।

চার.
وليضربن بخمرهن على جيوبهن
তরজমা : তারা যেন গ্রীবা ও বক্ষদেশ মাথার কাপড় দ্বারা আবৃত করে। ... (সূরা নূর : ৩১)

উম্মুল মুমিনীন আয়েশা রা. বলেন,
يرحم الله نساء المهاجرات الأول، لما أنزل الله : وليضربن بخمرهن على جيوبهن شققن مورطهن فاختمرن بها.
অর্থাৎ আল্লাহ তাআলা প্রথম শ্রেণীর মুহাজির নারীদের প্রতি দয়া করুন। আল্লাহ তাআলা যখন
وليضربن بخمرهن على جيوبهن
আয়াত নাযিল করলেন তখন তারা নিজেদের চাদর ছিঁড়ে তা দ্বারা নিজেদেরকে আবৃত করেছিলেন।-সহীহ বুখারী ২/৭০০
উপরোক্ত হাদীসের ব্যাখ্যায় হাফেয ইবনে হাজার আসকালানী রাহ. বলেন-‘ফাখতামারনা’ অর্থ তারা মুখমন্ডল আবৃত করেছেন।-ফাতহুল বারী ৮/৩৪৭
আল্লামা আইনী রাহ. বলেন-‘ফাখতামারনা বিহা’ অর্থাৎ যে চাদর তারা ছিঁড়ে ফেলেছিলেন তা দিয়ে নিজেদের মুখমন্ডল আবৃত করলেন। (উমদাতুল কারী ১৯/৯২)
আল্লামা শানকীতী রাহ. বলেন, এই হাদীস থেকে বোঝা যায়, উপরোক্ত মহিলা সাহাবীগণ বুঝতে পেরেছিলেন যে, এই আয়াতে আল্লাহ তাআলা তাদেরকে মুখমন্ডল আবৃত করারও আদেশ করেছেন। তাই তারা আল্লাহ তাআলার আদেশ পালনার্থে নিজেদের চাদর ছিঁড়ে তা দিয়ে মুখমন্ডল আবৃত করেছেন।

পাঁচ.
ولا يضربن بارجلهن ليعلم ما يخفين من زينتهن وتوبوا الى الله جميعا ايه المؤمنون لعلهم تفلحون
(তরজমা) তারা যেন তাদের গোপন আভরণ প্রকাশের উদ্দেশ্যে সজোরে পদক্ষেপ না করে। হে মুমিনগণ! তোমরা সকলে আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন কর, যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার। (সূরা নূর :  ৩১)

এই আয়াত থেকে বোঝা যায়, পরপুরুষকে আকৃষ্ট করে এমন সব কাজ থেকে বিরত থাকা ঈমানদার নারীর কর্তব্য। কারণ পরপুরুষকে নুপুরের আওয়াজ শোনানোর উদ্দেশ্যে সজোরে পদবিক্ষেপ যখন নিষেধ করা হয়েছে তখন যে সকল কাজ, ভঙ্গি ও আচরণ এর চেয়েও বেশি আকৃষ্ট করে তা নিষিদ্ধ হওয়া তো সহজেই বোঝা যায়। মুসলিম নারীদের জন্য এটি আল্লাহ রাববুল আলামীনের একটি গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা।


http://www.alkawsar.com/topic/14?page=1

3
Please have a Look on the following topics (of this section)! Important for this month!!
http://forum.daffodilvarsity.edu.bd/index.php/board,644.0.html

You are requested to give your valuable opinion in this poll and reply/comment in the posts, it will be helpful for your forum profile too!

4
Thank you & good to see authentic information.
It would be even better if you share the information source.
Example of an authentic islamic magazine : http://alkawsar.com/

You can also read my post on this topic:
http://forum.daffodilvarsity.edu.bd/index.php/topic,45686.0.html
http://forum.daffodilvarsity.edu.bd/index.php/topic,45684.0.html
http://forum.daffodilvarsity.edu.bd/index.php/topic,45683.0.html

5
Russia / Re: Russian Govt Scholarships for International Students
« on: November 28, 2017, 07:08:50 PM »
Important information & inspiring too. Thanks for sharing.

6
Important information & interesting story. Thanks for sharing.

7
Important information & inspiring story. Thanks for sharing.

8
Replying with smile on your own post? :O  :o

9
Important information & inspiring too. Thanks for sharing.

10
Important information & inspiring too. Thanks for sharing.

11
Important information & inspiring story. Thanks for sharing.

12
Teaching & Research Forum / Re: Big Data different from "little data"
« on: November 27, 2017, 11:29:20 AM »
Important information. Thanks for sharing.
But, can you please share the link?

13
You are most welcome.

14
বিশ্বজাহানের গৌরব, নবীকুল শিরোমনি বিশ্বশান্তির দূত হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। পৃথিবীর প্রতিটি অণু-পরমাণুই তাঁর বিশ্বময় মর্যাদা এবং খ্যাতি ও মাহাত্মের সাক্ষী।
আরব-আজমের সর্দার, শ্রেষ্ঠ রাহবর হযরত মুহাম্মাদ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর অনন্য ব্যক্তিত্ব ও অনুপম জীবন আদি থেকে অন্ত পর্যন্ত প্রতিটি যুগ ও স্থানজুড়েই ব্যাপৃত।
বিশ্বজাহানের সবকিছুই রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নবুওয়ত ও রিসালাতের সীমাহীন মাহাত্ম্য ও মাধুর্যের দ্বারা প্রভাবিত। পৃথিবীর প্রতিটি অণু-পরমাণুই তাঁর খ্যাতি ও মাহাত্মের সাক্ষী।
إِنَّا أَعْطَيْنَاكَ الْكَوْثَرَ     এবং وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ

এর চিত্তাকর্ষক ধ্বনি গোটা নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলে প্রতিধ্বনিত। সৃষ্টির সেই শ্রেষ্ঠ মানবের সম্মানিত নাম ‘মুহাম্মাদ’ রাসূলুল্লাহ। আর তাঁর খ্যাতি এতই সমুচ্চ যে, স্থান-কালের সকল উচ্চতা ও বুলন্দি এই পবিত্র নাম ও ব্যক্তিত্বের তুলনায় নেহাৎ তুচ্ছ। পাতাল-ভূমি থেকে উর্ধ্ব আরশ পর্যন্ত সবকিছুই তাঁর স্মরণে মুখর। এত উচ্চ মর্যাদা গোটা জগতে তিনি ছাড়া আর কেউ পায়নি। কেউ পাবেও না। এই অমোঘ সত্য কী সুন্দর করে বলেছেন কবি সাইয়েদ সাবীহ রাহমানী-
كوئى مثل مصطفى كا كبهى تها، نہ ہے، نہ ہوگا
كسى اور كا يہ رتبہ كبهى تها، نہ ہے، نہ ہوگا
অর্থ : মুস্তফা  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মতো কখনো কেউ ছিল না, এখনও নেই আর ভবিষ্যতেও হবে না।

এই মর্যাদা অন্য কারো কখনো ছিল না, এখনও নেই আর ভবিষ্যতেও হবে না।
প্রসিদ্ধ মুফাসসির আল্লামা সাইয়েদ মাহমুদ আলূসী রাহ. (১২৭ হি.)
وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ
এর তাফসীরে লেখেন, ‘‘রাসূলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মর্যাদা ও সমুচ্চতা,  তাঁর অনুপম আদর্শ ও নামের খ্যাতি এর চেয়ে অধিক আর কী হবে যে, আল্লাহ তাআলা নিজের নামের সঙ্গে কালিমায়ে শাহাদাতে তাঁর প্রিয়তমের নামটিও যুক্ত করে দিয়েছেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর আনুগত্য করাকে নিজেরই আনুগত্য ঘোষণা করেছেন। ফেরেশতাগণের সাথে তিনিও রাসূলের প্রতি দরূদ প্রেরণ করেছেন এবং মুমিনদেরকেও তাঁর প্রতি দরূদ পাঠের আদেশ দিয়েছেন। আর যখনই সম্বোধন করেছেন অতি সম্মানিত ও সুন্দর উপাধিসহ সম্বোধন করেছেন। যেমন, হে মুদ্দাছছির! (চাদর আবৃত), হে মুযযাম্মিল! (কম্বল আবৃত), হে প্রিয় নবী!, হে প্রিয় রাসূল! ইত্যাদি।
 
পূর্বের আসমানী কিতাবগুলোতেও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সপ্রশংস উল্লেখ করেছেন এবং সকল নবী ও উম্মত থেকে তাঁর প্রতি ঈমান আনার প্রতিশ্রুতি নিয়েছেন।
এক ঐতিহাসিক ও অনস্বীকার্য বাস্তবতা এই যে, ভূ-পৃষ্ঠে এমন কোনো অঞ্চল নেই, যেখানে দিনরাত সরওয়ারে দো আলম  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর রিসালাত ঘোষিত হয় না। চবিবশ ঘণ্টার ১৪৪০ মিনিটেই পৃথিবীর কোনো না কোনো প্রান্তে, কোনো না কোনো অঞ্চলে আযানের ধ্বনি বাজতে থাকে।
 
আর সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তাআলার নামের সাথে সৃষ্টির শ্রেষ্ট মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নাম উচ্চারিত হতে থাকে। সুতরাং তাঁর নামের মর্যাদা ও মাহাত্ম্য এদিক থেকেও প্রোজ্জ্বল যে, আযানের ধ্বনি যতদিন পৃথিবীতে বাজবে ততদিন আল্লাহর নামের সাথে তাঁর প্রিয়তম পয়গম্বর, সাইয়্যেদুনা মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর পবিত্র নামটিও প্রেমিক-হৃদয়ে সুধাবর্ষণ করবে।
 
আজও ধর্মহীনতার এই যুগে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সত্যসরল ধর্মের প্রচার ও তাঁর জীবনচরিত ও বাণী ব্যাপকতর করার প্রয়াস পূর্ণ নিষ্ঠার সঙ্গে অব্যাহত আছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর পবিত্র নাম স্মরণ করে, তাঁর সপ্রশংস আলোচনা করে করে ও তাঁর অনন্য গুণ-বৈশিষ্ট্য শুনে হাজার কোটি মানুষের মনে যে আনন্দ ও প্রফুল্লতা অনুভূত হয় তা ভাষায় প্রকাশের মতো নয়। আপন-পর নির্বিশেষে এমনকি বিরুদ্ধ শত্রুদেরও তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ ছাড়া উপায় নেই।
যে পরিস্থিতি ও প্রেক্ষাপটে এ আয়াত অবতীর্ণ হয়েছে তা সামনে রেখে আয়াতটি তিলাওয়াত করলে নিঃসন্দেহে তিলাওয়াতের স্বাদ ও আনন্দ বহুগুণে বেড়ে যাবে। কুফর-শিরকের ঘোর অন্ধকার, গোটা দুনিয়াই তাঁর বিরুদ্ধে, মক্কার নামকরা সর্দাররা মুস্তফা-প্রদীপ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে নির্বাপিত করার চেষ্টায় লিপ্ত ... এ অবস্থায় এই আয়াত অবতীর্ণ হয়েছে।
কে তখন ভাবতে পেরেছিল যে, মক্কার এই এতীমের পবিত্র আলোচনা পৃথিবীর আনাচে-কানাচে উচ্চারিত হবে! তাঁর ধর্মের আলোয় সভ্য দুনিয়ার বিরাট অংশ আলোকিত হয়ে উঠবে এবং কোটি কোটি মানুষ তাঁর নামে জীবন বিসর্জন দেওয়াকে নিজের জন্য শতসহস্র গৌরব ও সৌভাগ্য বলে মনে করবে। কিন্তু আল্লাহ রাববুল আলামীন তাঁর প্রিয় রাসূল ও সম্মানিত বান্দা হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সাথে যে প্রতিশ্রুতি করেছিলেন তা তো সত্য হওয়ারই ছিল এবং তা সত্য হয়েছে। কিয়ামত পর্যন্ত গোটা পৃথিবীর সপ্রশংস আলোচনায় তিনি সূর্যের মতো বিরাজ করবেন।

মাওলানা আবদুল মাজিদ দরয়াবাদী সুন্দর লিখেছেন, ‘স্রষ্টার সাথে যে সৃষ্টির নাম মুখে মুখে উচ্চারিত হয়, আল্লাহর নামের সাথে যে বান্দার নাম শ্রুতিগোচর হয় তা তো দুনিয়ার কায়সার বা কিসরার  নাম নয়, দুনিয়ার কোনো কবি-সাহিত্যিকের নাম নয়, কোনো বিদ্বান বা দার্শনিকের নাম নয়, কোনো নেতা বা সেনাপতির নাম নয়, তা কোনো ঋষি বা পাদ্রীরও নয়, এমনকি অন্য কোনো নবীরও নাম নয়। বরং তা হল আবদুল্লাহর কলিজার টুকরা, আমিনার চোখের মণি, বাতহার ভূমিতে জন্মগ্রহণকারী সেই উম্মি ও এতীমের।
কাশ্মিরের সবুজ ভূমিতে, দাকানের পাহাড়-পর্বতে, আফগানিস্তানের উঁচু ভূমিতে, হিমালয়ের চূড়ায়, গঙ্গার অববাহিকায়, চীন-জাপানে, বার্মা-রাশিয়ায়, মিসরে, ইরাক-ইরানে, ফিলিস্তিন ও আরবের বিস্তীর্ণ ভূমিতে, তুর্কী-নজদে, ইয়ামান-মরক্কোয়, ইস্তাম্বুলে, হিন্দুস্তানের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে এবং সভ্যতা ও সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র-লন্ডন, প্যারিস ও বার্লিনেও বছর বা মাস নয়, প্রতি দিন পাঁচ বার সুউচ্চ মিনার থেকে স্রষ্টার নামের সাথে যে নাম ইথারে ছড়িয়ে পড়ে তা এমন এক মহান ও সম্মানিত সত্ত্বার নাম, যাকে অন্তর্দৃষ্টিহীন দুনিয়া একসময় শুধু এতীম বলেই জানত।  তো এ  হল এতীমের রাজত্ব, আর এই হল وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ  এর তাফসীর। কোনো নির্দিষ্ট গোত্র কিংবা প্রদেশ নয়; গোটা পৃথিবীর বুকে, পৃথিবীর হৃদয়ে আজ কারো হুকুমত থাকলে তা এই এতীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এরই আছে, কোনো রাজত্ব থাকলে এই উম্মী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এরই আছে।

সাহাবী হযরত আবু সায়ীদ খুদরী রা. বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, একবার জিবরীল আমীন আ. আমার নিকট আগমন করলেন এবং বললেন, আমার ও আপনার রব আমাকে প্রশ্ন করেছেন যে, তিনি কীভাবে আপনার স্মরণ সমুচ্চ করেছেন? আমি আরয করলাম আল্লাহই ভালো জানেন। তিনি বলেন, আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, যখন আমার নাম উচ্চারণ করা হবে তখন আমার সাথে আপনার নামও উচ্চারণ হবে।-সহীহ ইবনে হিববান, হাদীস : ৩৩৮১; মুসনাদে আবু ইয়ালা, হাদীস : ১৩৭৫
কবিতার ভাষায়-তাকবীরে-কালিমায়, নামাযে-আযানে/আল্লাহর নামের সাথে মিলেছে  মুহাম্মাদের নাম।

সুতরাং আজ এমন কোন অঞ্চল, এমন কোন মুহূর্ত আছে, যা হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর স্মরণ ছাড়া অতিবাহিত হয়?
এই পৃথিবীর দশদিকে ভূমির আঙ্গিক আবর্তনের সাথে সাথে প্রতি আযানে নাম উচ্চারিত হয়। উঁচু উঁচু মিনার থেকে সরওয়ারে কায়েনাতের সম্মানিত নামও খালেকে কায়েনাতের মহিমান্বিত নামের সাথে সমুচ্চ স্বরে উচ্চারিত হয়। জলে-স্থলে, শহরে-গ্রামে, জনবসতিতে-বিরাণভূমিতে, পাহাড়ের চূড়ায় সর্বত্র মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর নাম উচ্চারিত হয়।
আরব-আজমের সর্দার, বিশ্বমানবতার রাহবার হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর মোবারক নামে মুখরিত থাকে। ষ
অনুবাদ : আবদুল্লাহ ফাহাদ


http://www.alkawsar.com/article/1046

15

যে কোনও নির্মাণকার্যের জন্য নির্মাতাকে কোন মডেল বা আদলের অনুসরণ করতে হয়। অন্যথায় সে নির্মাণকার্য সুচারু হয় না। মডেল যত নিখুঁত ও পরিণত হয়, নির্মাণও সেই অনুপাতে পরিপূর্ণতা পায়। এটা যেমন স্থূল নির্মাণের ক্ষেত্রে সত্য, তেমনি সূক্ষ্ম নির্মাণও  এর ব্যতিক্রম নয়, বরং সেক্ষেত্রে নকশা-নমুনার অনুসরণ আরও বেশি জরুরি। বস্তুত বর্তমানে মডেলের গুরুত্ব বুঝিয়ে বলার কিছু প্রয়োজন আছে বলে মনে করি না। কেননা এখন এটা একটা বাস্তব বিষয়। সাম্প্রতিক বিশ্বের প্রতিটি বিভাগ মডেলের উপর ভিত্তি করেই চলছে।

মডেলের যে এত সমাদর ও এত গুরুত্ব সে তো মানুষের বস্তুগত উন্নতিরই স্বার্থে। বস্তুগত উন্নতিও উন্নতি বটে এবং সে উন্নতির প্রয়োজনও নিঃসন্দেহে অনস্বীকার্য, কিন্তু সেই উন্নতি যার স্বার্থে, সেই মানুষের নিজের উৎকর্ষ তো আরও বেশি প্রয়োজনীয়। কেননা মানুষ যদি সুশীল ও সুকুমারমতি না হয়, সে যদি উৎকর্ষমন্ডিত ও সর্বাঙ্গসুন্দর না হয়, তবে বস্তুগত উন্নতি তার সমূহ দুর্ভোগের কারণ হতে পারে। অধুনা বিশ্বকে কি আমরা সেই রকমের দুর্ভোগে জেরবার হতে দেখছি না?

বস্তুগত উন্নতির জন্য যদি মডেলের অনুসরণ প্রয়োজনীয় হয়, তবে মানুষের মানবিক উৎকর্ষের জন্য কেন মডেলের দরকার হবে না? নিঃসন্দেহে দরকার। যুগ-যুগান্তরের আলোকিত মানুষেরা কোন না কোন মডেল তথা আদর্শস্থানীয় ব্যক্তির অনুসরণ করেই নিজেদের জীবনে বিপ্লব এনেছেন। এটাই জীবন গড়ার আসল পন্থা। অনুকরণীয় ব্যক্তির অনুসরণ ছাড়া কারও পক্ষেই নিজেকে আদর্শ মানুষ রূপে গড়ে তোলা সম্ভব নয়। কেননা যতক্ষণ না সামনে সে রকম কোন ব্যক্তি থাকে ততক্ষণ নিজ ত্রুটি ও কমতি দৃষ্টিগোচর হয় না। অনুকরণীয় ও পরিণত মানুষ অপরের পক্ষে দর্পণস্বরূপ। সে দর্পণের সামনে যারা নিজেদের তুলে ধরে, তারা তাদের অভাব নিরূপণে সক্ষম হয়। এরপর সে অভাব মোচন করতে জীবনকে ঋদ্ধ করে তোলার দিশা পায়।

আম্বিয়ায়ে কেরাম স্ব-স্ব যুগে মানুষের জীবন গড়ার মডেল হিসেবে দুনিয়ায় আগমন করেছিলেন। এ ধারার সর্বশেষ আদর্শ হচ্ছেন শেষ নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তিনি মানুষের জীবন রচনার জন্য নিজেকে এক নিখুঁত ও পরিপূর্ণ নকশা হিসেবে জগদ্বাসীর সামনে পেশ করেছিলেন। সে নকশা দেখে যারা নিজেদের গড়ার চেষ্টা করেছেন, তারা সোনার মানুষে পরিণত হয়েছেন। তার শরীরী সত্তা ইহলোক থেকে বিদায় নিয়ে গেছে বটে, কিন্তু তাঁর আদর্শিক সত্তার কোন মৃত্যু নেই। কিয়ামতকাল পর্যন্ত তার অনির্বাণ জীবনাদর্শ মানুষকে তাদের চলার পথের দিশা দিয়ে যাবে। মানুষের কর্তব্য তাঁকে পাঠ করা।
হ্যাঁ প্রিয় পাঠক! আপনি জীবনে অনেক কিছুই পড়ে থাকবেন। আরও অনেক পড়বেন এবং পড়তেই হবে। কেননা জ্ঞানকে সমৃদ্ধ করার জন্য পাঠের কোন বিকল্প নেই। কিন্তু সেই পাঠের ভেতর আপনার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে এবং সেটা আপনার জীবন নির্মাণের স্বার্থে। আমরা জীবনের মাত্র কয়েকটা ক্ষেত্রে এই প্রয়োজনীয়তার ব্যাখ্যা তুলে ধরছি।

বহিরঙ্গের পরিপাট্যের জন্য
একজন সভ্য-ভব্য ও সুন্দর মানুষ হতে হলে বাহ্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের প্রসাধন অপরিহার্য। অপরাপর গুণাবলি যতই উচ্চমানের হোক, যদি বহিরঙ্গ পরিপাটি না হয়, তবে সে মানুষ কখনই সভ্যজনদের মধ্যে গণ্য হতে পারে না। বহিরঙ্গের সৌন্দর্য আনয়নের জন্য চাই অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের পরিচর্যা তথা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, চুল-দাড়ির কাট ও বিন্যাস, নখ ও বাড়তি পশমের সাফাই, আতর ও সুগন্ধি ব্যবহার ইত্যাদি। সেই সঙ্গে মার্জিত পোশাক-আশাকও এর এক অপরিহার্য অনুষঙ্গ। কিন্তু রুচিবোধের পার্থক্য, স্থান-কাল ও পরিবেশ-পরিস্থিতির তারতম্য, আত্মমর্যাদাবোধের অভাব, হীনম্মন্যতা ও অনুকরণ-প্রবণতা ইত্যাদি কারণে এক্ষেত্রে নানা রকমের ঢং-ঢাং পরিলক্ষিত হয়, যার অধিকাংশই ভদ্রজনোচিত নয়। আপনি যদি এক্ষেত্রে একজন সুন্দরতম মানুষ হিসেবে নিজেকে অলঙ্কৃত করতে চান, তবে সকল ভদ্রের সেরা ভদ্র মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনীগ্রন্থ পাঠ করুন। সেখানেই আপনি পাবেন সুন্দরতম অঙ্গসজ্জা ও শ্রেষ্ঠতম বেশবিন্যাস, যার অনুসরণ আপনাকে করে তুলবে সুদর্শন ও মার্জিত এবং বুদ্ধিদীপ্ত ও রাশভারী।

অন্তর্জগত আলোকিত করার জন্য
বহিরঙ্গের চেয়ে মনোজগতই মানুষের বেশি দামি, বরং এটাই তার প্রকৃত সারবত্তা। এটা বহু গুণের লালন ক্ষেত্র, বিপুল সম্ভাবনার বিচিত্র ভুবন। এ ভুবনের চাষাবাদ, প্রাত্ন-পরিচর্যা দ্বারা একজন  মানুষ লোক থেকে লোকোত্তর পুরুষে পরিণত হতে পারে। আবার অবহেলা অনাদরের ফলে এখানে এতটা আগাছা ও পাশববৃত্তির জন্ম নেয়, যা মানুষকে পরিণত করতে পারে হিংস্রতম হায়েনায়। কিন্তু আফসোস! আজকে এদিকটা নিদারুণভাবে উপেক্ষিত। মানুষের সর্বাত্মক চেষ্টা ব্যয় হচ্ছে বস্তুগত উন্নতির পেছনে। সে আজ তার শারীরিক চাহিদা ও পাশববৃত্তি  চরিতার্থ করার প্রতিযোগিতায় উন্মাতাল আর যে প্রতিযোগিতার যূপকাষ্ঠে বলি হচ্ছে তার সুকুমারবৃত্তিসমূহ। এভাবে ঘটছে মানুষের মানবিক আত্মহনন।
প্রিয় পাঠক! আমাদেরকে এই সর্বনাশা প্রবণতা পরিহার করে মানবিকতার চর্চায় মন দিতে হবে। প্রকৃত মানুষ হিসেবে নিজের অস্তিত্ব রক্ষা করতে হলে অন্তর্লোকে নিহিত গুণাবলির বিকাশ ঘটাতে হবে। তা কোথায় পাব সে পথের দিশা? হ্যাঁ, নবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনচরিত। সেখানে পাওয়া যাবে উত্তম চরিত্রের বিকশিত রূপ পরিপূর্ণ মাত্রায়।
আপনি আখেরী নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে পাঠ করুন। যেখানে পাবেন সত্যবাদিতা, সাহসিকতা, কোমলতা, দৃঢ়তা, বিশ্বস্ততা, ন্যায়পরায়ণতা, সহানুভূতি-সহমর্মিতা, কল্যাণকামিতা, বদান্যতা, ধৈর্য- সহিষ্ণুতা, স্নেহ-মমতা, পরমত সহিষ্ণুতা, আত্মসচেতনতা, আল্লাহর প্রতি পরম আস্থা, আপন কাজে নিষ্ঠা ও অবিচলতা, ন্যায়ের প্রতি আনুকূল্য, অন্যায়ের প্রতি বজ্র-কাঠিন্য, অটুট মনোবল, নিঃস্বার্থ ত্যাগ-তিতিক্ষা। মোদ্দাকথা উন্নত চরিত্রের সকল উপাদান।
মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনচরিতের এ অধ্যায় নিঃসন্দেহে তার আগ্রহী পাঠককে উন্নত ও মহৎ চরিত্রের পথনির্দেশ করে এবং কালক্ষেপণ না করে অবিলম্বে তার অনুশীলনে অনুপ্রাণিত করে। সুতরাং নিজের ভেতর উন্নত চরিত্রের বিকাশ সাধনের লক্ষ্যে প্রতিটি মানুষের উচিত সীরাত পাঠকে সর্বোচ্চ পর্যায়ে গুরুত্ব দেওয়া।

আচার-আচরণকে শিষ্টতাপূর্ণ করার জন্য
সমাজবদ্ধ প্রাণী হওয়ার কারণে মানুষের পক্ষে আচার-আচরণের শিষ্টতা অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। মার্জিত আচরণ শত্রুকে বন্ধুতে পরিণত করে, পরকে আপনার করে তোলে এবং সমাজে সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা করে। পক্ষান্তরে অশিষ্ট আচরণ এর বিপরীত ফল আনয়ন করে, যা মানবসমাজের পক্ষে কিছুতেই কাম্য হতে পারে না। কিন্তু সমাজে কি সেই অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিই বিরাজ করছে না? এবং আমাদের শিষ্টতা-বর্জিত আচরণ কি সে পরিস্থিতির জন্য বহুলাংশে দায়ী নয়? সুতরাং আমাদের সংশোধন দরকার। সর্বস্তরের মানুষের উচিত নিজের আচার-আচরণকে মার্জিত ও পরিশীলিত করে তোলা। আর নিঃসন্দেহে সে মার্জিত ব্যবহারের সবক পাওয়া যাবে সীরাত গ্রন্থে। মজলিসে কীভাবে বসতে হবে, আগন্তুককে কীভাবে বিদায় জানাতে হয়, আগন্তুককে কীভাবে সম্বোধন করতে হবে, অতিথিকে কীভাবে বিদায় জানাতে হয়, পথচারী আপনার কাছে কী ব্যবহার চায়, সাথী-সঙ্গী ও ছোট-বড় ভেদে আচরণের কী তারতম্য হওয়া দরকার, ইশারা-ইংগিতের প্রয়োগ কী রকম হওয়া চাই, প্রশ্ন ও উত্তরের ধরণ-ধারণ কেমন হওয়া বাঞ্ছনীয়, ইত্যাদি বিষয়ে সঠিক ধারণা লাভের জন্য আমাদেরকে অবশ্যই মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনীগ্রন্থ পাঠ করতে হবে।

বিশুদ্ধভাষী ও সদালাপী হওয়ার জন্য
সীরাত পাঠ মানুষকে শুদ্ধ ভাষা শিখতে উদ্বুদ্ধ করে এবং সদালাপী হতে উৎসাহ যোগায়। সীরাতের একজন আগ্রহী পাঠক দেখতে পায়, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যাতে বিশুদ্ধ ভাষা শিখতে পারেন, তাঁর শৈশবে সেদিকে লক্ষ্য রাখা হয়েছে। জীবনভর তিনি বিশুদ্ধ ভাষায় কথা বলেছেন। তাঁর মুখের ভাষা আরবী সাহিত্যের শ্রেষ্ঠ নিদর্শন। তাঁর সান্নিধ্যে যারা এসেছেন, তাদেরকেও সুন্দর ও বিশুদ্ধ ভাষায় কথা বলতে উৎসাহিত করেছেন। তাঁর ভাষা হত সুস্পষ্ট, বাহুল্যবর্জিত ও সহজবোধ্য। তাঁর মধুর ভাষণ শ্রোতাকে মুগ্ধ ও আকৃষ্ট করত। চরম বিদ্বিষ্ট ব্যক্তি পর্যন্ত তার বচন শুনে চমৎকৃত হত। ভাষার রুঢ়তা তিনি পছন্দ করতেন না। গালমন্দ ও অশ্লীলতা তার ভাষায় ঠাঁই পেত না। একদিকে তাঁর স্নিগ্ধ ভাষা হতদরিদ্র বেদুঈন বৃদ্ধার হৃদয় সঞ্জীবিত করত, অন্যদিকে তার শাণিত তেজস্বী বাক্যে দুর্দান্ত আরব্য সর্দারের অন্তরাত্মা প্রকম্পিত হত।
বস্তুত ভাষা আল্লাহ তাআলার কুদরতের এক অনন্য নিদর্শন। এর দ্বারা কেবল মনের ভাবই ব্যক্ত হয় না, এর কার্যকরিতা বহুবিধ। এর কাছে তরবারি হার মানে, যাদু মানে বশ। প্রয়োজন শুধু মোক্ষম ব্যবহারের। অন্তরে সেই তাগিদ সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রত্যেকের উচিত সীরাত গ্রন্থসমূহকে নিজের জন্য অবশ্যপাঠ্য করে নেওয়া।

চরিত্রের ভারসাম্য সৃষ্টির জন্য
বলা হয়ে থাকে সবকিছুতে মধ্যম পন্থাই শ্রেষ্ঠ, প্রান্তিক কর্মপন্থা ও একদেশদর্শী মানসিকতা সকলের কাছেই নিন্দনীয়। কাউকে ভালবাসবেন, তো সে ভালবাসার একটা মাত্রা থাকা চাই। আবার সংগত কোন কারণে কারও সাথে শত্রুতা সৃষ্টি হলে, সে শত্রুতাও যেন সীমা না হারায়। অর্থোপার্জন করুন, কিন্তু  উন্মত্ত হয়ে নয়, আবার বিত্তে নিরাসক্তিও যেন বৈরাগ্যে পর্যবসিত না হয়। এমনিভাবে অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রেও পরিমিতি রক্ষা করা চাই। ব্যয়কুণ্ঠা যেমন দোষ, তেমনি অমিতব্যয়ও প্রশংসনীয় কিছু নয়।
মোটকথা আহার-বিহার, আনন্দ-বিপদ, পরিশ্রম ও বিশ্রাম সবকিছুতেই মধ্যমপন্থা অবলম্বন জীবনের পক্ষে সুখকর। কিন্তু আমরা কি করছি? সকল ক্ষেত্রেই আমরা কি প্রান্তিক আচারে অভ্যস্ত নই? আমরা যখন আনন্দ করি তখন সম্পূর্ণ বেসামাল হয়ে যাই, আবার যখন অবসাদে পায়, তখন সম্পূর্ণ অকর্মণ্য হয়ে পড়ি। জীবনের সকল ভুবনেই আমরা প্রচন্ড অমিতাচারী। তাই যে সুখের সন্ধানে আমরা ভবঘুরে, কিছুতেই তার নাগাল পাই না। ব্যর্থ ও পরাস্ত জীবনের বোঝা বয়ে বেড়াই আমৃত্যু। এর থেকে মুক্তি পেতে হলে জীবনের সমস্ত আচার-আচরণে ভারসাম্য সৃষ্টি করতে হবে। অভ্যস্ত হতে হবে মধ্যমপন্থায় চলতে। আর সে শিক্ষা ও অনুপ্রেরণা পাওয়া যায় মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সীরাতে। তাই সফল জীবনের প্রত্যাশীকে সীরাত পাঠে মনোযোগী হতে হবে।

আদর্শ পেশাজীবী হওয়ার জন্য
মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একটা অর্থনৈতিক জীবন ছিল, যেমন আমাদেরও আছে। আমরা জীবন নির্বাহের জন্য বিভিন্ন রকমের পেশা অবলম্বন করে থাকি। চাকরি-বাকরি, চাষাবাদ, ব্যবসা-বাণিজ্য প্রভৃতি পন্থায় আমরা অর্থোপার্জন করি। এসকল ক্ষেত্রে আমরা সৎ ও আদর্শ জীবনের প্রতিভূ কি না, তা যাচাই করতে হলে আমাদেরকে সীরাত পাঠ করতে হবে এবং সেই মুকুরে নিজেদের চেহারা দেখতে হবে।
দায়িত্বসচেতন হওয়ার জন্য
মানুষ হিসেবে আমাদের প্রত্যেকের উপর নানাবিধ দায়-দায়িত্ব অর্পিত আছে। পারিবারিক, নৈতিক, সামাজিক, রাষ্ট্রীয় প্রভৃতি। এসব দায়-দায়িত্বের প্রতি আমরা খুব কমই সচেতন। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায় আমরা নিজ দায়িত্ব পালনে উদাসীন থেকে অধিকার আদায়ের সংগ্রামে মেতে উঠি। বরং সাম্প্রতিক বিশ্বের সর্বাঙ্গন অধিকার আদায়ের আন্দোলনে মুখরিত। অথচ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষ আপন আপন দায়িত্ব পালনে নিষ্ঠাবান থাকলে এসব হিংসাত্মক তৎপরতার কোন প্রয়োজন থাকত না। যে ব্যক্তি মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবন-চরিত পাঠ করবে, সে নিঃসন্দেহে এই সত্য মরমে মরমে উপলব্ধি করবে। তাঁর গোটা জীবনই ছিল দায়িত্ব সচেতনতার মূর্ত-প্রতীক।

দেখুন, আর সকলের মত তাঁরও ছিল পরিবার-পরিজন। স্ত্রী-পুত্র-কন্যা পরিবৃত একটি পারিবারিক জীবন তিনি যাপন করতেন। এমনিভাবে তাঁর ছিল আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী; ছিল একটি বৃহত্তর সমাজ এবং একটি রাষ্ট্র। যেমন আমাদেরও আছে। তা তিনি কেমন স্বামী ও পিতা ছিলেন? আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীর সঙ্গে তাঁর আচরণ কেমন ছিল? এ সকল ক্ষেত্রে একজন দায়িত্ববান মানুষ হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে হলে তাঁর জীবনের এ সকল অধ্যায় আপনাকে পড়তে হবে। এমনিভাবে রাষ্ট্র ও সমাজ, এমনকি জীব-জন্তু ও পরিবেশ বৈচিত্রের প্রতি আমাদের যে দায়বদ্ধতা রয়েছে, সে ব্যাপারে জাগ্রত-চিত্ত হওয়ার জন্য সীরাতগ্রন্থের পাতা উল্টানো অপরিহার্য। এসকল ক্ষেত্রে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আচরিত জীবন নিঃসন্দেহে আপনার আমার দায়িত্ববোধকে আন্দোলিত করবে।

সর্বাবস্থায় আল্লাহর প্রতি আস্থা ও মনোবল সৃষ্টির জন্য
মানবজীবন আগাগোড়াই সংগ্রাম। সর্বাবস্থায় তাকে প্রতিকূল হাওয়ার মধ্যে চলতে হয়। কোন ক্ষেত্রেই তার যাত্রা পথ অবাধ নয়। দেহ-মনের প্রতিপালন, চিন্তা-চেতনা ও আদর্শের লালন, অর্থোপার্জন, সহায়-সম্পত্তির সংরক্ষণ, সভ্যতা-সংস্কৃতির নির্মাণ তথা জীবন-ভুবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই মানুষকে একের পর এক লড়াই চালিয়ে যেতে হয়। নিরন্তর লড়াই নিঃসন্দেহে ক্লান্তিকর। তদুপরি এ লড়াই কখনও এমন ঘোরতর হয়ে ওঠে এবং প্রতিপক্ষ এতটাই শক্তিশালী হয়ে আসে, যার সামনে তিষ্ঠানোই দায় হয়ে পড়ে। এরকম পরিস্থিতিতে নিজ অবস্থান ধরে রাখার জন্য দরকার আল্লাহর প্রতি চরম আস্থা ও দুর্দমনীয় মনোবলের। এরকম আস্থা ও মনোবলের পরাকাষ্ঠা দেখা যায় মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনাদর্শে। আবূ তালিব উপত্যকার অবরুদ্ধ জীবন, তায়েফ সফর, হিজরত, হামরাউল-আসাদ ও হুনায়নের যুদ্ধ প্রভৃতি ঘটনা পাঠ করে দেখুন আল্লাহ তাআলার প্রতি আস্থা ও আত্মবিশ্বাসের এমন নযীর আপনি কোথাও খুঁজে পাবেন না। এসব ঘটনার ভেতর আপনার জীবন-যুদ্ধের রসদ পেয়ে যাবেন। সুতরাং সীরাত পাঠ করুন। আল্লাহ তাআলার প্রতি অবিচল আস্থাশীল হয়ে উঠুন। হৃদয়ে অটুট মনোবল সঞ্চার করুন।

শোকে-দুঃখে সান্ত্বনা লাভের জন্য
জীবনে যেমন প্রাপ্তি-সুখ আছে, তেমনি আছে বিয়োগবেদনাও। জন্ম হতে মৃত্যু পর্যন্ত মানুষ একদিকে সুখের অগণ্য উপকরণ লাভ করে, অন্যদিকে সেইগুলোই সে একটি একটি করে হারাতে থাকে। এটা প্রকৃতির সাধারণ নিয়ম। কিন্তু যতই সাধারণ নিয়ম হোক, লব্ধ জিনিস কেউ হারাতে চায় না। তার সাথে একটা প্রীতির বন্ধন গড়ে ওঠে। সে বন্ধনের বিচ্ছেদ কারও কাছেই কাঙ্ক্ষিত নয়। তাই প্রকৃতির সাধারণ ধারায় যখন তা হারিয়ে যায়, তখন হৃদয়ে দুঃখ জাগে, মানুষ শোকাহত হয়।
জন্মাবধি মানুষ কত কি যে হারায় তার কোন ইয়ত্তা আছে? অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ, শক্তি-সামর্থ্য, ধন-মান, পিতা-মাতা, স্ত্রী-পুত্র-কন্যা, ভাই-বোন, আত্মীয়-স্বজন কত কি! এর কোনোটাই কম দামি নয়। কোনটা অমূল্য। একের পর এক এ সবের বিয়োগ-ব্যথা মানুষকে জর্জরিত করে। কখনও প্রচন্ড শোকে হৃদয় মুহ্যমান হয়ে পড়ে। সেই কাতর অবস্থায় আত্ম-সংবরণের জন্য দরকার আশ্বাস বাক্যের, চাই সান্ত্বনা; অন্যথায় মানব জীবন বিকল ও স্থবির হয়ে পড়ে। অনেক সময় সাংঘাতিক রকমের দুর্ঘটনাও ঘটে যায়, যার প্রতিকারের কোন উপায় থাকে না। তা কোথায় পাওয়া যাবে সেই সর্ব-শোক-হারক সান্তবনা? নিঃসন্দেহে নবী মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবন-চরিতে। তাঁর জীবনেও বহু দুঃখ-বেদনা এসেছে। অনেক বড় আকারে এসেছে। কত রকমে যে তাকে দুঃখ-জর্জরিত হতে হয়েছে সীরাত-পাঠকের তা অজানা নয়।
আল্লাহ তাআলার এই সর্বপ্রিয় হাবীবকে যখন দুঃখ পোহাতে হয়েছে, তখন আপনাকে আমাকেও পোহাতে হবে বৈকি। এটা আমাদের পক্ষে সবচেয়ে বড় সান্ত্বনা।

প্রিয় পাঠক! মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সীরাতগ্রন্থ পাঠের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে এটা একটা সংক্ষিপ্ত সারণী মাত্র। তাঁর গোটা জীবনই আপনার-আমার জীবন রচনার জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। কুরআন মাজীদের ভাষায়-
 لَقَدْ كَانَ لَكُمْ فِي رَسُولِ اللَّهِ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِمَنْ كَانَ يَرْجُو اللَّهَ وَالْيَوْمَ الْآَخِرَ وَذَكَرَ اللَّهَ كَثِيرًا ‘‘তোমাদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও আখেরাতকে ভয় করে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে, তার জন্য রাসূলুল্লাহর মধ্যে রয়েছে উত্তম আদর্শ।’’-সূরা আহযাব : ২১
আসুন, তাঁর সে আদর্শ জানার লক্ষ্যে আমরা সীরাতবিষয়ক গ্রন্থসমূহ পাঠ করি এবং তার আলোকে নিজেদেরকে আলোকিত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলি।


(আলকাউসার রবিউল আউয়াল ১৪২৬; এপ্রিল ২০০৫ সংখ্যা থেকে পুনর্মুদ্রিত)

http://www.alkawsar.com/article/1240

Pages: [1] 2 3 ... 7