Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Anuz

Pages: [1] 2 3 ... 88
1
Nice Tips to control the emotions.

2
Good News for all and will helps a lot.

3
প্রাচীন কাল থেকেই ঔষধ হিসেবে মধু ব্যবহার হয়ে আসছে। নানা রোগের নিরাময় এবং কাটাছেঁড়া দ্রুত সারিয়ে তোলার কাজেও ব্যবহার হতো মধু। তাই প্রতিদিন খানিকটা মধু খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো একটি কাজ।
রোজ সকাল বেলা এক গ্লাস মধুপানি আপনার দিনটিকে মধুরতা দিয়ে শুরু করবে। শুধু তাই নয়। এই একগ্লাস মধু পানি আপনার শরীর ও স্বাস্থ্যের ওপর ফেলবে দারুণ চমৎকার প্রভাব। জানতে চান সেই অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতাগুলো? চলুন তবে জেনে নেয়া যাক।
ওজন কমাতে সাহায্য করে
প্রতিদিন সকালে ১ গ্লাস কুসুম গরম পানিতে ১ চা চামচ মধু মিশিয়ে পান করার অভ্যাস করলে দ্রুত ওজন কমে। মধু হচ্ছে প্রাকৃতিক চিনি যা আমাদের দেহে এনার্জির সরবরাহ করে এবং হজম প্রক্রিয়া উন্নত করে। এতে করে মুটিয়ে যাওয়ার ভয় কম থাকে। এছাড়াও মধু পানি জমে থাকা চর্বি দূর করতে সহায়তা করে থাকে।
অ্যাসিডিটির হাত থেকে রক্ষা করে
প্রতিদিন ১ গ্লাস মধু পানি পান করলে অ্যাসিডিটির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। মধুর অ্যান্টিসেপ্টিক গুণ পাকস্থলীর মিউকাসের নিঃসরণ ঘটায় যা জ্বালাপোড়া মুক্ত করে। এছাড়াও মধু পানি আমাদের কোলন ও ইনফিউসকে হাইড্রেট রাখতে সহায়তা করে।
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়
প্রতিদিন ১ গ্লাস মধু পানি খাওয়ার অভ্যাস দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। মধুর অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান দেহকে ভেতর থেকে সবল করে তোলে এবং যেকোনো ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে দেহকে তৈরি করে।
অ্যালার্জিমুক্ত থাকতে সহায়তা করে
প্রতিদিন ১ গ্লাস মধু পানি অ্যালার্জির সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। প্রতিদিন সকালবেলা এক গ্লাস মধু পানি পানের ফলে দেহের পোলেন অংশগুলো যেসকল স্থানে অ্যালার্জির সংক্রমণ বেশি হয় সেসকল স্থানে একধরণের প্রতিরক্ষা পর্দার সৃষ্টি হয় যা সংবেদনশীলতা কমায় ও অ্যালার্জির যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দেয়।
পেটে গ্যাসের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে
গ্যাসের সমস্যা হলে একধরণের অস্বস্তি কাজ করতে থাকে যা দূর করতে পারে মধু পানি এক নিমেষেই। গ্যাসের সমস্যা শুরু হলে ১ চামচ মধু ১ গ্লাস পানিতে মিশিয়ে পান করে ফেলুন। এটি পেট ঠাণ্ডা করবে এবং গ্যাসের সমস্যা দূর করবে।
দুর্বলতা কাটিয়ে দেহে তাৎক্ষণিক এনার্জি সরবরাহ করে
যদি দুর্বলতা অনুভব করে থাকেন তাহলে অনেক সময় তা দেহে সুগারের মাত্রা কমে গেলে অনুভূত হয়। অনেকে এই সময় এনার্জি ড্রিংক নামক বিষ পান করে থাকেন। এর পরিবর্তে যদি ১ গ্লাস মধু পানি পান করে ফেলেন তবে আপনি তাৎক্ষণিকভাবে এনার্জি পাবেন, দুর্বলতা কেটে যাবে এবং দেহ থাকবে সুস্থ।
হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখে
এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে মধু মিশিয়ে পান করলে এটি দেহে ভালো কলেস্টোরলের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে এবং কার্ডিওভাস্কুলার সমস্যা থেকে দূরে থাকতে সহায়তা করে।

4
ফুড পয়জনিং খুব প্রচলিত সমস্যা। কোনো খাবার খাওয়ার পর বারবার বমি, পাতলা পায়খানা, জ্বর, পেট ব্যথা ইত্যাদি হওয়া ফুড পয়জনিংয়ের লক্ষণ। গরমের সময় অনেকেই এই রোগে আক্রান্ত হন। জীবাণুযুক্ত খাবার, অস্বাস্থ্যকর খাবার, ময়লাযুক্ত থালাবাসনে খাবার খাওয়া এগুলো ফুড পয়জনিং তৈরি করতে পারে।
ফুড পয়জনিং হয়ে অবস্থা যদি বেশি খারাপ হয়, তাহলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। তবে তার আগে পালন করতে পারেন কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি। স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট হেলথ ডাইজেস্ট জানিয়েছে পদ্ধতিগুলোর কথা।

আদা
এক কাপ আদার চা দুপুরের খাবার অথবা রাতের খাবারের পর  পান করুন। এটি বুক জ্বালাপোড়া, বমি ইত্যাদি সমস্যা প্রতিরোধ করবে।
আদার চা বানাতে এক চামচ আদা কুচি এক কাপ পানিতে ফুটান। এর মধ্যে সামান্য চিনি দিন। এরপর পান করুন।
এ ছাড়া এক চা চামচ মধুর মধ্যে কয়েক ফোঁটা আদার রস দিন। ব্যথা ও প্রদাহ দূর করতে দিনে কয়েকবার এটি খেতে পারেন।

রসুন
রসুন ফুড পয়জনিংয়ের সঙ্গে চমৎকারভাবে লড়াই করে। এটি ডায়রিয়া, পেটে ব্যথা কমায়।
রসুনের জুস খেতে পারেন।
একটি রসুনের কোয়া ধীরে ধীরে চিবিয়ে খান। পানি পান করুন।
রসুনের তেল ও সয়াবিন তেল একসঙ্গে মিশিয়ে পেটে ঘষতে পারেন।

লেবু :
লেবুর মধ্যে রয়েছে প্রদাহরোধী, অ্যান্টিভাইরাল ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান। লেবু ফুড পয়জনিং তৈরিকারী ব্যাকটেরিয়াগুলোর সঙ্গে লড়াই করে।
এক চামচ লেবুর রসের মধ্যে এক চিমটি চিনি মেশান। দিনে দু-তিনবার এভাবে খান।
এক গ্লাস হালকা গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে খেতে পারেন। এটিও ফুড পয়জনিং কমতে সাহায্য করবে

5
নাস্তায় প্রায়ই খাওয়া হয় যে ফলটি তা হল কলা। সাধারণত বেশিরভাগ মানুষ সদ্যপাকা কলা খেতে পছন্দ করেন। কলা অতিরিক্ত পেকে গেলে এর চামড়ায় কালো ছোপ ছোপ দাগ পড়ে। আর এই দাগের কারণে বেশির ভাগ সময় অতিরিক্ত পাকা কলা ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু আপনি জানেন কি, এই অতিরিক্ত পাকা কলার রয়েছে অনেকগুলো স্বাস্থ্যগুণ?
১। পুষ্টির পরিমাণ
প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম, ভিটামিন বি এবং ফাইবার সমৃদ্ধ ফল হল কলা। কলা যখন অতিরিক্ত পেকে যায় এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পরিমাণ বহুগুণ বেড়ে যায়। শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
২। বুক জ্বালাপোড়া রোধ
কলাতে প্রাকৃতিক অ্যান্টি অ্যাসিড রয়েছে যা বুক জ্বালাপোড়া রোধ করে। বুক জ্বালাপোড়া করলে একটি কলা খান দেখবেন অনেকখানি কমে গেছে।
৩। রক্তচাপ
কলা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এতে সোডিয়ামের পরিমাণ কম এবং পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি হওয়ায় এটি স্টোক, হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা হ্রাস করে থাকে।
৪। হজমশক্তিতে বৃদ্ধিতে
অতিরিক্ত পাকা কলায় ফাইবারের পরিমাণ কমে যায়, যার কারণে এটি সহজে হজম হতে পারে।
৫। ক্যান্সার প্রতিরোধে
২০০৯ সালে জাপানিজ এক গবেষণায় দেখা গেছে যে অতিরিক্ত পাকা কলাতে টিউমার নেক্রোসিস ফ্যাক্টর রয়েছে যা শরীরের ক্যান্সারের কোষ ভেঙ্গে দেয়। এটি ক্যান্সার নিরাময় করে না তবে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে।
৬। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে
কলাতে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার রয়েছে যা প্রাকৃতিকভাবে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে থাকে। তাই কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর করতে পাকা কলা খাওয়ার অভ্যাস করুন।
৭। রক্তস্বল্পতা দূর করতে
কলায় আয়রন রক্ত কোষকে উজ্জীবিত করে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে থাকে। যা রক্ত স্বল্পতা দূর করে। তাই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখুন একটি পাকা কলা।

8
Really Good Facts to follow............ :)

9
Real Estate / Re: ভূমি জরিপ: CS, SA, RS, BS কি?
« on: November 04, 2017, 06:01:17 PM »
Knowledgeable ...............

10
Cricket / A Fantastic Innings From Soumya becomes valueless
« on: October 28, 2017, 02:12:50 PM »
চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে রান পাননি। অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও খুঁজে পাননি ছন্দ। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট-ওয়ানডেতেও তাঁর ব্যাট কথা বলেনি। সৌম্য সরকার নিজেকে খুঁজে পেলেন আজ ব্লুমফন্টেইনে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুই ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে। কিন্তু বিফলে গেছে তাঁর চেষ্টা। ৩১ বলে ৪৭ রানের দারুণ ইনিংসটা তাই সৌম্যর কাছে মূল্যহীন!

তাঁর ব্যাটে চড়েই ৯ ওভারে বাংলাদেশ করতে পেরেছে ২ উইকেটে ৯২। ওভার প্রতি ১০-এর ওপর রান তোলা বাংলাদেশের জন্য বাকি পথটা পাড়ি দেওয়া কঠিন কিছু ছিল না। কিন্তু ৯.১ ওভারে সৌম্য আউট হতেই ফিকে হতে শুরু করে জয়ের আশা। দক্ষিণ আফ্রিকাকে বাংলাদেশ যা একটু জবাব দিয়েছে বাঁহাতি ওপেনারের ইনিংসে ভর করেই। শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা হেরে যাওয়ায় নিজের ইনিংস নিয়ে অতৃপ্তি থেকে গেছে সৌম্যর, ‘ইনিংসটা যদি লম্বা করতে পারতাম, দল যদি জিতত তখন এটা নিয়ে বলতে পারতাম। আমি শেষ করতে পারিনি, দল জেতেনি। এই ইনিংসের মূল্য নেই।’
প্রথম ৯ ওভার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করা বাংলাদেশ কেন ইনিংসের বাকি পথটা একই ছন্দে এগোতে পারেনি, সেটির ব্যাখ্যায় সৌম্য বললেন, ‘শেষ ১০ ওভারে ৩ থেকে ৬ নম্বরের (ব্যাটসম্যান) কেউ যদি বড় রান করতে পারত, তাহলে আমাদের জন্য সহজ হতো। তখন একজন সেট ব্যাটসম্যান থাকত। অনেক কিছু হতে পারত।’
পুরো দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে এই একটা ম্যাচে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সে লড়াইয়ের ছাপ দেখা গেছে। পরশু পচেফস্ট্রুমে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে নামার আগে যেটি আত্মবিশ্বাসী করছে সৌম্যকে, ‘আজ প্রায় ২০০-এর কাছাকাছি রান করেছে ওরা। আমরাও ১৭৫ করেছি। অবশ্যই আমাদের সামর্থ্য আছে। মাঝে যদি একটা ব্যাটসম্যান ভালো করত, আমরা সহজেই জিতে যেতাম। এখান থেকে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে যে আমরা ২০০ করতে পারি।’

13
Common Forum/Request/Suggestions / Re: rohingyas!
« on: October 28, 2017, 11:58:02 AM »
A big crisis and sensitive issue.

15
Common Forum/Request/Suggestions / Re: ইলিশ মাছ
« on: October 28, 2017, 11:51:13 AM »
Reading this article I get a clear idea about the real fact.

Pages: [1] 2 3 ... 88