Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - faruque

Pages: [1] 2 3 ... 42
1
দ্বিতীয় তারাবিহর তেলাওয়াত নিয়ে আলোচনা



১৮ মে শুক্রবার বাদ ইশা দ্বিতীয় তারাবিহতে কুরআনুল কারীমের সূরা বাকারার ২০৪ নং আয়াত থেকে শেষ পর্যন্ত ও সূরা আল ইমরানের শুরু থেকে ৯১ নং আয়াত পর্যন্ত মোট দেড়পারা তেলাওয়াত করা হয়েছে। এর মধ্যে অতি সংক্ষেপে কিছু কিছু আয়াতের উপর আলোকপাত করা হয়েছে। ইসলামের নিয়ম কানুন পালনের ক্ষেত্রে কেউ কেউ  নিজেদের ইচ্ছেমত ও সুবিধামত আমল করে থাকেন।

অথচ ইসলামে এর কোন অবকাশ নেই। ২০৮ নং আয়াতে আল্লাহ পাক বলেন, ইয়া আইয়্যুহাল্লাজীনা আমানুদখুলু ফিসসিলমি কাফফাহ। অর্থাৎ হে ঈমানদারগণ, তোমরা পরিপূর্ণভাবে ইসলামে প্রবেশ কর।  তাহলে ২/১ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে, কিছু সুন্নাত আর কিছু বিজাতীয় কালচার অনুস্মরণ করে আমরা কিভাবে নাজাতের আশা করতে পারি? 

২১৯ নং আয়াতে বলা হয়েছে, যদি মদ ও জুয়া সম্বন্ধে তোমাকে কেউ জিজ্ঞাসা করে তবে তুমি বল, এ দুটোই মহাপাপ। তিরমিজী শরীফে হযরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসে বলা হয়, মদের সাথে সম্পর্ক রাখে এমন দশ শ্রেণীর ব্যক্তির উপর হুজুর (সা.) লা’নত করেছেন। আর তারা হলো, ১. যে লোক নির্যাস বের করে, ২. প্রস্তুতকারক, ৩. পানকারী, ৪. যে পান করায়, ৫. আমদানীকারক, ৬. যার জন্যে আমদানী করা হয়, ৭. বিক্রেতা. ৮. ক্রেতা. ৯. সরবরাহকারী ও ১০. এর লভ্যাংশ ভোগকারী।

বুখারী শরীফের ৪৮৬০ নং হাদীসে হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, নবী করীম (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি লাত ও ওজ্জার নামে কসম করে সে যেন লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ বলে। আর যে ব্যক্তি তার সাথীকে বলে এসো, আমরা জুয়া খেলি, তবে তার সদকা করা উচিৎ। হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) বলেছেন, জুয়া হলো মাইসির বা বঞ্চিত। আর সব রকমের জুয়াই হারাম।

২৩৩ নং আয়াত মোতাবেক শিশুদের স্তন্যপান করানো মাতার উপর ওয়াজিব আর মাতার ভরণ পোষণ পিতার উপর ওয়াজিব। ২৫৫ নং আয়াতকে আয়াতুল কুরসি বলা হয়। এ আয়াতের ফজিলত সম্বন্ধে অনেক হাদীস রয়েছে। নাসায়ী শরীফে এক হাদীসে রাসূলে কারীম (সা.) বলেন, যে লোক প্রত্যেক নামাজের পর আয়াতুল কুরসি নিয়মিত পাঠ করে তার জন্য বেহেশতে প্রবেশের পথে একমাত্র মৃত্যু ছাড়া আর কোন অন্তরায় থাকে না।

২৭৫ নং আয়াতের মাধ্যমে আল্লাহ তা’য়ালা সুদকে হারাম করেছেন। আর ব্যবসাকে করেছেন হালাল। দুনিয়াতে হিন্দু, খ্রিস্টান. বৌদ্ধসহ হাজারো ধর্ম রয়েছে।

সূরা আলে ইমরানের ১৫ নং আয়াতে আল্লাহ পাক বলেন, ইন্নাদ্দীনা ইনদাল্লাহিল ইসলাম। অর্থাৎ ইসলামই হলো আল্লাহর একমাত্র মনোনীত ধর্ম। ৮৫ নং আয়াতে আল্লাহ পাক বলেন, যে ব্যক্তি ইসলাম ছাড়া অন্য ধর্ম অন্বেষণ করে তা কখনও তার নিকট থেকে গ্রহণ করা হবে না। অন্য ধর্মাবলম্বীরা পরকালে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

অন্যায়ভাবে মানুষ হত্যাকারীদের ব্যঙ্গ করে ২১ নং আয়াতে আল্লাহ  পাক বলেন, হে নবী, আপনি তাদের জাহান্নামের সুসংবাদ দেন। আর ৫৭ নং আয়াতে আল্লাহ বলেন, ওয়াাল্লাহু লা ইউহিব্বুয যালিমীন। অর্থাৎ আল্লাহ যালিমদের ভালবাসেন না। আল্লাহর দীন থেকে যারা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে, আল্লাহকে যারা অবিশ্বাস করেছে এবং কাফের অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছে তারা যদি আল্লাহর আযাব থেকে মুক্তির বিনিময়ে পৃথিবী ভর্তি স্বর্ণ দিতে চায় তবু  কখনো তা গ্রহণ করা হবে না। বরং সূরা আলে ইমরানের ৯১ নং আয়াতে ওদের জন্যে পরকালে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি ও কোন সাহায্যকারী থাকবে না বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

লেখক: খতীব, দিউ বায়তুস সালাম জামে মসজিদ, কলেজ রোড, ফুলপুর, ময়মনসিংহ।

2
রমজানে শুধু খাবার নয় মন্দ থেকেও বিরত থাকতে হবে



রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস মাহে রমজান। বিশ্বের সকল মুসলিম প্রতি বছর এর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকেন। মাহে রমজান, আস্-সালাম, স্বাগতম হে রমজান’ এসব বলে মুসলমানরা বরণ করে নেন রমজানকে। রমজান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অত্যন্ত সুপরিচিত এক নাম। এর ঐতিহাসিক গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম।

হযরত আদম (আ.), নূহ (আ.), মূসা (আ.), দাউদ (আ.)সহ সমস্ত নবীর উপর এ মাসে রোজা ফরজ ছিল। এটা নতুন কোন বিষয় নয়। বাইবেলেও রোজা রাখার নির্দেশ রয়েছে। আল্লাহর পক্ষ থেকে এ মাস সকল জাতির জন্য হাদিয়াস্বরূপ। এতে রয়েছে আনন্দের বার্তা, তাকওয়া অর্জনের উত্তম পন্থা, নেকীর প্রেরণা, পরের মঙ্গল কামনা, দান খয়রাত, তিলাওয়াত, তারাবিহ্, সাহরী, ই’তিকাফ, শবে কদর, ইফতার, দোয়া অগণিত ও অফুরন্ত নেয়ামতরাশি এবং কঠিন সাধনার মাধ্যমে ইসলাহে নাফস বা আত্মসংশোধনমূলক শিক্ষা।

কুরআনুল কারীমে বলা হয়েছে, যে তার নাফসকে সংশোধন করতে পেরেছে সে সফলকাম হয়েছে। হাদীসে এসেছে, তোমাদের শরীরের ভিতরে একটা টুকরা রয়েছে। যখন ওই টুকরাটা ভাল থাকবে, তখন পুরো শরীর বা মানুষটাই ভাল থাকবে। যখন ওই টুকরাটা মন্দ হয়ে যাবে, তখন পুরো মানুষটাই মন্দ হয়ে যায়। জেনে রাখ, ইহা হলো ক্বালব। এগুলো সংশোধন করার একটা উপায় হলো, রোজা রাখা।

প্র্যাক্টিকেল ক্লাস বা বিশেষ ট্রেনিং নেয়ার মাধ্যমে ওই ক্বালব, নাফস বা আত্মাকে সংশোধন করতে হবে। এজন্যে বিশেষ করে আল্লাহ পাক যে সময় বা তারিখ দান করেছেন এর নাম মাহে রমজান। রমজানের প্রত্যেক সুবহি সাদিক হতে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল বালেগ নারী-পুরুষ কোন কিছু না খেয়ে কোন প্রকার অশ্লীল বা মন্দ কাজে নিজেকে না জড়িয়ে মাওলাকে খুশি করার উদ্দেশ্যে রোজা রাখার নিয়্যাতে সারা দিনমান উপবাস থাকাকে সাওম বলে। সাওমের বহুবচন হলো সিয়াম। এটা একটা সাধনার নাম। বর্তমানে ইন্টারনেটের যুগে প্রকৃত রোজা রাখতে হলে বিশেষ সাধনা বা তপস্যা ব্যতিত আদৌ সম্ভব নয়। কারণ, যেদিকে তাকানো যায়, সেদিকেই অশ্লীল বেহায়াপনা, অনিয়ম আল গুনাহ। গুনাহ ভাইরাস বা ঈমানের জন্য ক্যানসারস্বরূপ। যা রোজাকে আক্রমণ করে এর এ্যাকশান নষ্ট করে দেয়। এসব থেকে বাঁচতে হলে সিয়াম সাধনার বিকল্প নেই।

এর প্রকৃত অর্থ হৃদয়াঙ্গম করতে হবে। খানা পিনা থেকে পেটকে বিরত রাখা পাশাপাশি মন্দ দেখা থেকে চোখকে, মন্দ শোনা থেকে কানকে, মন্দ চিন্তা থেকে মাথাকে এভাবে প্রতিটা অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে শুধু রমজান মাসে নয়, সারা বছরঅবধি মুমিনকে মন্দ থেকে বিরত রাখার আমরণ সাধনা করে যেতে হবে। তাহলেই মাহে রমজানের অন্তর্নিহিত তাৎপর্য উপলব্ধি বা এর মধ্যে থাকা ধনভান্ডার উদ্ধার করতে পারবে।

রমজানের ফজিলত সম্বন্ধে হুজুর (সা.) অনেক বাণী রেখে গেছেন। এক হাদীসে কুদসীতে নাবী কারীম (সা.) বলেন, আদম সন্তানের প্রত্যেক নেক আমলের সাওয়াব দশ গুণ থেকে সাতশ গুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। আল্লাহ তা’য়ালা বলেন, কিন্তু রোজা ব্যতিত। কেননা, এটা আমার জন্য। আর এর পুরস্কার আমিই দিব। রোজার মাসকে শাহরুল্লাহ বা আল্লাহর মাস বলা হয়। অতএব, বুঝাই যাচ্ছে যে, এর গুরুত্ব কতটুকু।

তারাবীহের ফজিলত বর্ণনা করতে গিয়ে হুজুর (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি তারাবীহের বিশ রাকায়াত নামাজ আদায় করবে, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা তাকে প্রতি সিজদার পরিবর্তে ১ হাজার ৫শ নেকী দান করবেন। শুধু তাই নয়, ওই ব্যক্তির জন্য বেহেশতের মধ্যে লাল ইয়াকুত পাথর দিয়ে এমন একটি বাড়ি তৈরি করে দিবেন, যাতে ৬০ হাজার দরজা থাকবে এবং প্রত্যেক দরজায় লাল ইয়াকুতমন্ডিত একটি করে স্বর্ণের প্রাসাদ থাকবে। আরো যেসব হাদীসে হুজুর (সা.) বলে গেছেন শুনলে এসব নিয়ামতের প্রতি লোভ হয়। কিন্তু তা হাদসিলের জন্য আমল করতে যেন লোভ হয় না। এ রোগ থেকে আল্লাহ পাক আমাদেরকে সুস্থ্যতা দান করুন।

আজ এ রমজানে বিধর্মীদের কথা বলে হোটেল খোলা রেখে পর্দার আড়ালে যা হচ্ছে তা ঠিক নয়। মানুষ মুখে যা বলছে তা করছে না। এই যে অমিল, এর কারণ কি? প্রকৃতপক্ষে যদি যথাযথভাবে সিয়াম সাধনা করা হতো তবে এমনটি হবার কথা নয়। কেন হচ্ছে? শিক্ষক, অফিসার বা যে কোন কর্মচারী তার পুরো ডিউটি না করে পুরো বেতন নিয়ে যাচ্ছেন, মাদরাসার সুপারের কাছে সুন্নাত পর্যুদস্ত হচ্ছে, দাঁড়ির উপর আযাব চলছে। আমল ঠিক নেই। তাহলে স্কুলের হেড মাস্টার কি করবেন? আর তাদের ছাত্রই বা কেমন হবে? কিছু সংখ্যক টাইটেল পাস প্রিন্সিপাল হুজুরদের নামাজ দেখে ভ্রাম্যমান স্কুলের ছাত্র অর্থাৎ তাবলীগ পাস অশিক্ষিত হুজুরদের কেবল হাসি পায়। দাওরা মাদরাসার মুহতামিম হয়েও রুকু থেকে সোজা না হয়ে সিজদায় চলে যায়। বড় মসজিদে ইমামতি করছেন কিন্তু ক্বিরাত সহীহ না।

দোয়ার আগে পরে দরুদ শরীফ পড়তে শোনা যায় না। পড়লেও দরুদ শুদ্ধ হয় না। এমন কেন হয়? এগুলো কি তাকওয়া বা রমজানের শিক্ষার পরিপন্থী নয়?  রমজানের প্রকৃত শিক্ষা থেকে আমরা দূরে সরে যাচ্ছি বলেই এসব হচ্ছে বলে আমার মনে হয়। আল্লাহ সব দেখেন, একথা মুখে স্বীকার করলেও কার্যত: মানা হচ্ছে না। রমজানের এ শিক্ষা যিনি নিয়েছেন তিনি কিভাবে এসব মন্দ কাজে জড়িত হন? অশিক্ষিত লোকেরা চেয়ে থাকেন শিক্ষিত বা আলিমের দিকে। কিন্তু তাদের এসব ভুল হলে কেমনে চলে? ছাত্রকে বলা হয় সিগারেট এনে দিতে। ডাক্তার চেম্বারে বসে ধুমপান করেন। টাখনুর নিচে প্যান্ট পরেন। এদের নিকট থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কি আদর্শ শিখবেন? এগুলো রমজানের শিক্ষা নয়। আসলে আমরা রমজানের রোজা রাখছি ঠিকই কিন্তু এ থেকে শিক্ষা নিচ্ছি না।

বলা হয়, এ মাস আসলে মুসলিম পরিবারগুলোতে আনন্দের জোয়ার বয়ে যায়। কিন্তু কেন? এর উত্তর হয়তো অনেকেরই জানা নেই। তবে মূল কারণ হালো, রমজান এমন এক মাস যা রোজাদারের গুনাহকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছারখার করে দেয়। এর প্রভাবে মালিকরা শ্রমিকদের কাজের চাপ কমিয়ে দেন।
মসজিদগুলোতে মুসল্লি বেড়ে যায়। ইফতারের সময় বিরাট আনন্দঘন পরিবেশের অবতারণা হয়। সর্বোপরি, গুনাহ ছারখার হয়ে যাওয়ার কারণে ওই রোজাদার ব্যক্তি ওলীতে পরিণত হয়ে যান। আর যে ওলী হয়ে গেল, তার সব হয়ে গেল। আমার মনে হয়, এটাও একটা কারণ। যাক, যার উসীলায় আমরা এসব পাচ্ছি তাকে নিশ্চয়ই কদর করা উচিৎ, তার দাবি পূরণ করা উচিৎ। করব, ইনশা-আল্লাহ। রমজানের দাবি পূরণ করতে হবে। মানুষ বলে, কিছু পেতে হলে কিছু দিতে হয়। মূলত: কিছু দেয়ার মাধ্যমেই কিছু পাওয়ার অধিকার সৃষ্টি হয়। কাজেই আমরা আমাদের সবটুকু দিয়ে রমজানকে মূল্যায়ণ করব। রমজানের হক আদায় করব আমাদেরই স্বার্থে। আল্লাহ পাক আমাদের সবাইকে তাওফীক দান করুন। আমীন।

লেখক: খতীব, দিউ বায়তুস সালাম জামে মসজিদ, কলেজ রোড, ফুলপুর, ময়মনসিংহ।

3
ওয়াইফাই নেটওয়ার্কে গতি কম? যা করবেন



অনলাইনে থাকার জন্য ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের পাশাপাশি এখন অনেকেই হরেক রকম মোবাইল ডিভাইস ব্যবহার করেন। এদের একটি হলো ওয়াইফাই। এই ডিভাইসটি এখন বেশি জনপ্রিয়। তবে বিভিন্ন কারণে তা পুরোদমে ব্যবহার করা সম্ভব হয় না।  নিচে তাই ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক শক্তিশালী করার কয়েকটি উপায় নিয়ে আলোচনা করা হলো :

রাউটার আপগ্রেড : পুরনো অনেক রাউটারই ধীরগতিতে ইন্টারনেট সরবরাহ করে। আর এ সীমাবদ্ধতা দূর করার জন্য প্রয়োজন দ্রুতগতির রাউটার। এক্ষেত্রে আপনার রাউটারের গতি দেখে নিন। এটি যদি আপনার ইন্টারনেটের লাইনের তুলনায় কম গতির হয় তাহলে রাউটার পরিবর্তন করার প্রয়োজন হতে পারে।

রাউটারের অবস্থান :  ডিজিটাল ডিভাইসগুলোর সবচেয়ে কাছাকাছি স্থানে কোনো বাধা ছাড়া রাউটার রাখার চেষ্টা করুন। বাড়িতে বহু ভারি ফার্নিচার থাকলে সেগুলোর আড়ালে নয় বরং সেগুলোর উপরে রাউটার বসান। এতে বাধামুক্তভাবে রাউটার আপনার ডিভাইসগুলোর সঙ্গে সংযুক্ত হতে পারবে। এছাড়া বাড়ির এক প্রান্তে না রেখে তা বাড়ির মাঝামাঝি স্থানে বসানোই যুক্তিসঙ্গত।
চ্যানেল পরিবর্তন : আপনার রাউটারের ফ্রিকোয়েন্সি অন্য যন্ত্রপাতির ফ্রিকোয়েন্সির সঙ্গে কনফ্লিক্ট করছে কি না, তা জেনে রাখুন। আপনার রাউটার যদি ২.৪ গিগাহার্জ ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে তাহলে তা কর্ডলেস ফোন, মাইক্রোওয়েভ, ব্লুটুথ, সিসিটিভি ইত্যাদির সঙ্গে কনফ্লিক্টের সম্ভাবনা থাকে। এক্ষেত্রে ৫ গিগাহার্জ কিংবা ভিন্ন কোনো ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করা সবচেয়ে ভালো।

বাধা এড়ান : রাউটারের সঙ্গে আপনার ডিভাইসের মাঝে দ্রুত যোগাযোগের পথে বহু জিনিসই বাধা সৃষ্টি করতে পারে। এসব বাধার মধ্যে রয়েছে ধাতব দরজা, অ্যালুমিনিয়াম কাঠামো, ওয়াল ইনসুলেশন, পানির ট্যাংক বা অ্যাকুরিয়াম, আয়না, হ্যালোজেন লাইট, গ্লাস ও কংক্রিট। এ ধরনের বাধাগুলো যেখানে সবচেয়ে কম সেখানেই প্রয়োজনীয় যন্ত্র বা রাউটার স্থাপন করুন।
সফটওয়্যার আপডেট : রাউটার ও ইন্টারনেট সরবরাহের কাজে নিয়োজিত বিভিন্ন সফটওয়্যার নিয়মিত আপগ্রেড হয়। একটু খেয়াল রেখে রাউটার ও মোবাইল ডিভাইস বা পিসির সফটওয়্যার আপডেট করে নিলে ইন্টারনেটের ভালো গতি পাওয়া যেতে পারে।
এক্সটেন্ডার : নেটওয়ার্ক বাড়ানোর জন্য এক্সটেন্ডার পাওয়া যায়। আপনার ওয়াইফাই রাউটার থেকে দূরে কোথাও ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রয়োজন হলে এক্সটেন্ডার ব্যবহার করতে পারেন।

প্রতিবেশী : আপনার ইন্টারনেটের সংযোগ কোনো প্রতিবেশী ব্যবহার করলে এতে আপনার ইন্টারনেটের গতি কমে যেতে পারে। তাই প্রতিবেশীদের থেকে সাবধান। অবশ্য কয়েকজন প্রতিবেশী মিলে একটি গতিশীল ইন্টারনেট নিয়ে তা শেয়ার করে ব্যবহার করাও একটি ভালো বুদ্ধি।

নিরাপত্তা বাড়ান : ওয়াইফাই ইন্টারনেটের জন্য WEP বাদ দিয়ে কিছুটা নিরাপদ WPA/WPA2 ব্যবহার করুন। এটি ইন্টারনেট ব্যবহারে নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। এছাড়া নিয়মিত পাসওয়ার্ড পরিবর্তনও প্রয়োজনীয়।

গোপন রাখুন : ওয়াইফাই নেটওয়ার্কে আপনার নাম ও ডিভাইসের বিস্তারিত তথ্য দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। তার বদলে সাংকেতিক নাম ও অত্যন্ত গোপনীয় পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

টিন ফয়েল ব্যবহার করুন : ওয়াইফাই রাউটারের অ্যান্টেনার বাইরে ডিশ অ্যান্টেনার মতো বা অন্য কোনো উপায়ে টিনের ফয়েল ব্যবহার করে সিগন্যাল বাড়ানো সম্ভব। অন্য উপায়গুলো কাজ না করলে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

4
হজম শক্তি বাড়ায় যেসব খাবার



হজমশক্তি কমে গেলে দেহে পুষ্টির অভাবে বাসা বাঁধা শুরু করে নানা ধরণের রোগ। এমনকি বৃদ্ধি পেতে শুরু করে ওজনও। তাই আমাদের দেহের পরিপাকযন্ত্র সুস্থ রাখা এবং হজমশক্তি ঠিক রাখার জন্য আমাদের সচেষ্ট হতে হবে।

এমন কিছু খাবার প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখার চেষ্টা করুন যা হজমশক্তি বৃদ্ধি করে দেহ সুস্থ রাখবে-

আদা হজমের শক্তি বৃদ্ধি করতে অনেক প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে। আদা দেহের টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে সাহায্য করে। আদায় রয়েছে ‘জিনজারোলস’ যা হজমশক্তি বৃদ্ধি করে এবং পরিপাকক্রিয়া দ্রুত করে। সকালে এক কাপ আদা চা এবং রান্নায় আদার ব্যবহার কিংবা কাঁচা আদা খাওয়া পরিপাকযন্ত্র সুস্থ রাখে।

রসুন দেহের ক্ষতিকর টক্সিন দূর করতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার। রসুনের অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান যেকোন ধরণের ঠাণ্ডা কাশি, ভাইরাল ইনফেকশন দূর করার সাথে সাথে আমাদের হজমশক্তি বৃদ্ধিতেও কাজ করে। রান্নায় ব্যবহারের পাশাপাশি কাঁচা রসুন দেহের জন্য অনেক বেশি কার্যকরী।

দারুচিনিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাংগানিজ যা দেহের ফ্যাটি এসিড হজম করতে সাহায্য করে। এবং এটি আমাদের রক্তের সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। রান্নায় দারুচিনি ব্যবহার আমাদের দেহের পরিপাকযন্ত্র এবং হজমশক্তি বৃদ্ধির জন্য অনেক কার্যকরী।

5
নাস্তার আগে রসুন খাওয়ার উপকারিতা



রসুনের প্রাকৃতিক গুণের কথা কমবেশি আমাদের সবারই জানা। রসুন যে মানব স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারি তা অনেক আগে থেকেই প্রচলিত। তবে অনেকেই এটি খেতে পারেন না বা খেতে অস্বস্তি অনুভব করেন। বলা হয়ে থাকে, সকালে ঘুম থেকে উঠেই খালি পেটে রসুন বিশেষ করে কাঁচা রসুন গ্রহণ বেশ উপকারি। তবে অনেকেই খালি পেটে খেতে পারেন না।

যেভাবে খাবেন : 
খালি পেটে রসুন খেতে হবে সকালের নাস্তার করার আগেই। অনেকে চিবিয়ে খেতে পারেন না কারণ রসুলের এক ধরনের কড়া ঝাঁঝ আছে। সেক্ষেত্রে পানি দিয়ে গিলে খেতে পারেন। এক্ষেত্রে অবশ্যই টুকরো করে নেবেন। তবে রসুন চিবিয়ে খাওয়াটাই উত্তম।

রসুনের উপকারিতা :
রসুন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ করে। গবেষকদের মত, খালি পেটে রসুন গ্রহণ হাইপারটেনশন ও স্ট্রেস কমাতে সহায়তা করে। পেটে হজমের সমস্যা থাকলে তাও দূর করে। এছাড়া এটি স্ট্রেস থেকে পেটে গ্যাসের সমস্যা  দূরীকরণে, পেটের অন্যান্য গণ্ডগোলজনিত অসুখ যেমন ডায়রিয়া সারাতে, শরীরের রক্ত পরিশুদ্ধ করণে ও লিভারের ফাংশন ভালো রাখতে ভূমিকা রাখরসুন পুরুষের যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূণ ভূমিকা রাখে। খালি পেটে রসুন খাওয়ার ফলে যকৃত এবং মূত্রাশয় সঠিকভাবে কাজ করে। এছাড়াও, এর ফলে পেটের বিভিন্ন সমস্যা দূর হয়। এটি হজম ও ক্ষুদা বাড়াতে সাহায্য করে।

অন্যান্য ঔষধের তুলনায় শরীরকে ডি-টক্সিফাই করতে রসুন কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। রসুন প্যারাসাইট, কৃমি পরিত্রাণ, জিদ, জ্বর, ডায়াবেটিস, বিষণ্ণতা এবং ক্যান্সার এর মত বড় বড় রোগ প্রতিরোধ করে রসুন। গবেষণায় দেখা গেছে, খালি পেটে রসুন খাওয়া হলে এটি একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক এর মতো কাজ করে। সকালে খাবারের আগে রসুন খেলে এটি আরও কার্যকরীভাবে কাজ করে। আপনার যদি যক্ষ্মা বা টিবি জাতীয় কোন সমস্যা ধরা পড়ে, তাহলে সারাদিনে একটি সম্পূর্ণ রসুন কয়েক অংশে বিভক্ত করে বার বার খেতে পারেন। এতে আপনার যক্ষ্মা রোগ নির্মূলে সহায়তা পাবেন। রসুন খাওয়ার ফলে উচ্চ রক্তচাপের কিছু উপসর্গ উপশম হয়।

6
স্মার্টফোন গরম হয় কেন? জেনে নিন সমাধান



বর্তমান এই প্রযুক্তিনির্ভর যুগে প্রায় সবাই স্মার্টফোন ব্যবহার করেন। তবে স্মার্টফোনের অন্যতম একটি সমস্যা হলো- ব্যবহারের মাঝখানে খুবই গরম হয়ে যায়। স্মার্টফোন গরম হওয়ার বেশ কিছু কারণও আছে। তবে অতিরিক্ত গরম বিপদের কারণ হতে পারে। তাই আমাদের স্মার্টফোন অতিরিক্ত গরম হবার কারণ এবং সমাধান জানা দরকার।

ব্যাটারি:
মোবাইল কম্পানিগুলো বর্তমানে স্মার্টফোন দিন দিন পাতলা করছে। তবে তার তুলনায় ব্যাটারির প্রযুক্তি তেমন উন্নত হয়নি। ব্যাটারি যত বেশি দুর্বল হবে ফোন তত বেশি তাপ উৎপন্ন  করবে। ব্যাটারি চার্জ নেওয়ার সময় অথবা ডিচার্জ হওয়ার সময়েও ফোন বেশি গরম হয়ে থাকে।

কি পরিমান গরম হওয়া স্বাভাবিক:
আপনার ফোন কম দামি বলে বেশি গরম হয়, তা ঠিক নয়। স্বাভাবিকভাবে স্মার্টফোন ৩৫-৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত গরম হতে পারে। তবে স্ট্যান্ড বাই মোডেও যদি ফোনটি ৩৫-৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত গরম হয় তবে বুঝবেন আপনর ফোনে সমস্যা আছে।

দুর্বল নেটওয়ার্ক:
ফোন গরম হওয়ার আরেকটি করণ হচ্ছে দুর্বল নেটওয়ার্ক। আপনার ফোনে যদি নেটওয়ার্ক দুর্বল থাকে তখন সিগনাল যায় আর আসে। আবার ওয়াইফাই ব্যবহারে সিগন্যালের জন্য অনেক বেগ পেতে হয়। দুর্বল নেটওয়ার্কের জন্য ফোনে বেশি চাপ পরে, যার ফলে স্মার্টফোন অত্যাধিক গরম হয়ে থাকে।

প্রসেসর:
স্মার্টফোন গরম হওয়ার একটি করণ হচ্ছে প্রসেসর গরম হওয়া। আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন স্মার্টফোনের মূল অঙ্গ হচ্ছে প্রসেসর। প্রসেসর এমন একটি ডিভাইস যা সবসময় কাজ করে থাকে। আপনি ফোন ব্যবহার করেন আর নাই করেন। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ইলেকট্রন দিয়ে প্রসেসর তৈরী হয়ে থাকে। প্রসেসর স্মার্টফোনের বডির সাথে লাগানো থাকে যার ফলে তাপ অনুভব হয়।

স্মার্টফোন অতিরিক্ত গরম থেকে মুক্তির উপায়:
সবসময় খেয়াল রাখবেন যে ফোনে যেন চার্জ থাকে। একসাথে বেশি অ্যাপস চালু করে রাখবেন না। ফোনের অতিরিক্ত অ্যাপস ব্যাকগ্রাউন্ডে বেশি জায়গা নিয়ে নিচ্ছে কিনা সে দিকে খেয়াল রাখুন। স্মার্টফোন বেশি ব্যবহার করলে বা ফোনে অতিরিক্ত গেমস খেললে গরম হয় এটা একেবারেই ঠিক নয়।

র‌্যাম ও ক্যাশ মেমোরি সবসময় পরিস্কার রাখুন।  অপ্রয়োজনীয় ম্যাসেজ ডিলিট করুন। ফোনে কোন অ্যানিমিশন চালু থাকলে বন্ধ করুন। ফোনে এমন কভার ব্যবহার করুন যেন কভারটি চামরার হয়। বাহিরের তাপে যেন ফোন গরম না হয়ে যায় সেই দিকে খেয়াল রাখুন।

সবসময় ওয়াই-ফাই ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। পাশাপাশি, সবসময় ডেটা চালু করে রাখা উচিত নয়।

7
ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার করছেন? তাহলে সাবধান



ইন্টারনেট আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে ফ্রি ওয়াইফাই জোনের এতটাই চাহিদা যে রেলস্টেশন, বিমানবন্দর থেকে শুরু করে বহু রেস্তোরাঁ এমনকি বিভিন্ন সেবা প্রদানকারী সংস্থাও গ্রাহক টানতে এখন এর দ্বারস্থ হয়েছে। যার ফলে, এই সব স্থানে গেলে কোন পাসওয়ার্ড ছাড়াই বিনামূল্যে ‘ওয়াইফাই’ কানেক্ট করা যায়।

এসব ‘ওয়াইফাই’ নেটওয়ার্কের জন্য একটি ‘হটস্পট’ মেশিন লাগে। অধিকাংশ সময়ই দেখা যায় এই ‘হটস্পট’ মেশিনের ভাইরাস প্রতিরোধ করার ক্ষমতা থাকে না। ফলে, এই ‘হটস্পট’-এর সঙ্গে সংযোগ থাকা মোবাইল বা ল্যাপটপেও সেই ভাইরাস ঢুকে যায়। এরমধ্যে এমন কিছু ভাইরাস থাকে যাদের কাজ হলো ডিভাইসের ভিতর থেকে যাবতীয় তথ্য বের করে হ্যাকারকে পাঠিয়ে দেওয়া।

অনেক সময় পাবলিক ‘ওয়াইফাই’ জোনে নানা সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড লাগানো থাকে। যাতে এই ‘ওয়াইফাই’ জোনে স্মার্টফোন বা ল্যাপটপগুলোকে সাবধানে ব্যবহার করার জন্য সতর্ক করা হয়। কিন্তু অধিকাংশ সময়েই মানুষ এইসব সাইনবোর্ডকে পাত্তা দেয়না।

‘ফ্রি ওয়াইফাই’ জোনে একজনের স্মার্টফোন ব্যবহারকারী বা ল্যাপটপ ব্যবহারকারীর ‘ডেটা কমিউনিকেশন’ পড়ে ফেলতে পারে অন্য কেউ। এছাড়াও, কোনভাবে হ্যাকাররা যদি মোবাইলে থাকা ব্যাংকিং ডিটেলস, যেমন অ্যাকাউন্ট নাম্বার, ডেবিট কার্ড নম্বর, পিন নম্বর, ক্রেডিট কার্ড নম্বর, পিন নম্বর পেয়ে যায়, তাহলে নিঃস্ব হতে পারে ব্যবহারকারী।

এইসব ‘ফ্রি ওয়াইফাই’ কানেকশনে কোন পাসওয়ার্ড তো থাকেই না, এমনকি এর রাউটারও অত্যন্ত নিম্নমানের হয়। ফলে, ‘ফ্রি ওয়াইফাই’-এ কানেক্ট হওয়া স্মার্টফোন খুব সহজেই হ্যাক করা যায়।

তাই, সুরক্ষিত ‘ওয়াই-ফাই জোন’ ছাড়া কোথাও মোবাইল বা ল্যাপটপ কানেক্ট না করতেই পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

8
স্মার্টফোন পানিতে পড়লে যে ৭টি কাজ করতে ভুলবেন না




বাইরে যখন বেরিয়েছিলেন তখন আকাশ একদম উজ্জ্বল ছিল। আচমকা ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি নামতে পারে এমন কোনও আন্দাজ করতে পারেননি। এদিকে, পকেটে মোবাইল ফোন। বৃষ্টির পানি নিজে ভিজলে ক্ষতি নেই, কিন্তু, স্মার্টফোনে যদি পানি ঢুকে যায়! তাহলে…। এমন পরিস্থিতি থেকে নিজের স্মার্টফোনটাকে রক্ষা করতে এই কাজগুলো আপনি করে দেখতে পারেন।

১) বর্ষা আসার আগেই ফোনে থাকা সমস্ত তথ্য ‘ক্লাউড স্টোরেজ’-এ সেভ করে রাখুন। বর্ষায় কোনওভাবে ফোনে পানি ঢুকলে বেঁচে যেতে পারে আপনার মোবাইলে থাকা তথ্য। আর ভিজে হাতে টাচ স্ক্রিনে হাত দেবেন না। এতে পানি সোক করে ভিতরে চলে যেতে পারে এবং ‘টাচ স্ক্রিন’ কাজ করা বন্ধ করে দিতে পারে।

২) ফোন ভিজে যাওয়ার আগে বা ভিজে গেল সবার প্রথমে সুইচ-অফ করে দিন। এতে ফোনের ভিতরের যন্ত্রগুলি কাজ করা বন্ধ করে দেবে। ফলে, ফোনে পানি ঢুকলেও কিছুটা হলে রক্ষা পেতে পারে আপনার মোবাইলের ভিতরের যন্ত্রাংশ। এই কাজগুলি করলে মোবাইল নষ্ট না হয়ে যাওয়ারও আশা রাখতে পারেন। পারলে মোবাইল ফোনের ব্যাটারিও খুলে নিন।

৩) মানিব্যাগে সিলিকা জেল রাখুন। সিলিকা জেল যে কোনও জিনিসকে শুকনো রাখতে সাহায্য করে। জিনিসে ময়শ্চার পড়তে দেয় না। এর সঙ্গে জিপ লক করা ছোট প্লাস্টিকের পাউচ রাখুন। বৃষ্টিতে ভেজার উপক্রম হলে, প্লাস্টিকের এই পাউচে সিলিকা জেলের প্যাকেট রেখে মোবাইল ফোনটি ভরে দিন এবং জিপ লক করুন। কোনওভাবে পাউচে পানি ঢুকলেও সিলিকা জেল আপনার স্মার্টফোন শুকনো রাখতে সাহায্য করবে।

৪) বাজারে গেলে যে পলিব্যাগ পান, সেরকম একটা সঙ্গে রাখুন। বৃষ্টির মধ্যে আপনার স্মার্টফোনের রক্ষাকবচ হতে পারে এই পলিব্যাগ।

৫) এছাড়াও বাজার থেকে ওয়াটার-প্রুফ মোবাইল ফোনের পাউচ কভার কিনে নিন। বৃষ্টিতে আপনার স্মার্টফোনটিকে এই কভারের মধ্যে ভরে দিন। মোবাইল খারাপ হয়ে যাওয়ার দুশ্চিন্তা দূর হয়ে যাবে।

৬) বৃষ্টির মধ্যেও মোবাইল ফোনে কথা বলতে হবে। কিন্তু, কানে ফোন রাখলে ভিজে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে ব্লুটুথ-ইয়ারফোন ব্যবহার করতে পারেন।

৭) ভিজে থাকা স্মার্টফোনকে চার্জ দেওয়ার চেষ্টা করবেন না। আগে মোবাইল ফোনটিকে ভাল করে মুছে নিন। পারলে খোলা হাওয়ায় ১ ঘণ্টা ফেলে রাখুন। এরপর ফের একবার মুছে নিয়ে ফোন চার্জে বসাতে পারেন। ফোন মোছার সময় ব্যাটারিও মুছে নিন।

9
জেনে নিন হার্ট সুস্থ রাখার ১৭ উপায়



চিকিৎসকের কাছে গেলেই তারা সব সময় হার্ট সুস্থ রাখার পরামর্শ দেন। এটা করুন, সেটা করুন, কত পরামর্শ। কিন্তু রোজকার ইঁদুর দৌড়ের মাঝখানে হার্টের দিকে নজর দেয়ার সময় কোথায়? কিন্তু জানেন কি? বাড়িতে থেকেই আপনি রোজকার কাজের মধ্যে নিতে পারেন হার্টের যত্ন? চলুন জেনে নেই হার্ট সুস্থ রাখার সহজ উপায়

i) থাকুন হাসিখুশি : হাসিখুশি আর প্রাণবন্ত মুখাবয়ব শুধু স্টাইল বা ফ্যাশন আইকনই আপনাকে করে তুলবে না, বাড়িয়ে দেবে আপনার নীরোগ থাকার প্রবণতাও। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রাণবন্ত উপস্থিতি আপনার অবসাদ ও অভ্যন্তরীণ প্রদাহকে ছুটি দিয়ে দেবে এবং অলিন্দ ও নিলয়ের প্রকোষ্ঠকে সুঠাম রাখবে।

ii) বাড়ান সামাজিক যোগাযোগ : একা বাস করতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা অন্যদের তুলনায় বেশি হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিতে থাকে। তাই অন্যদের সঙ্গে কথা বলুন, হাত মেলান, জড়িয়ে ধরুন এবং আরো বেশি সামাজিক হতে চেষ্টা করুন; নিজের স্বার্থেই।

iii) অংশ নিন সকালের নাশতায় : হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, যারা সকালের পারিবারিক নাশতার টেবিল মিস করে তাদের হৃদযন্ত্রকালীন সংকটের পরিমাণ অন্যদের থেকে ২৭ শতাংশ বেশি থাকে।

iv) ছুড়ে ফেলুন এনার্জি ড্রিংকস : শক্তিবর্ধক এসব পানীয়কে ‘শত্রু’ হিসেবে গণ্য করুন। কেননা এসব পানীয় কোনোভাবেই আপনার কোনো ধরনের উপকারে আসবে না, উল্টো রক্তচাপ বাড়িয়ে মুহূর্তেই আপনাকে ধসিয়ে দেবে।

v) নীরবতাকে প্রাধান্য দিন : হার্টের সমস্যার সঙ্গে উচ্চ ডেসিবেলের শব্দেরও বেশ যোগ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বাড়ি থেকে দূরে প্রতি ১০ ডেসিবেল শব্দের মাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার হার্ট এটাকের পরিমাণও বাড়তে থাকে ১২ শতাংশ হারে।

vi) করুন মুঠোর ব্যায়াম : টানা চার সপ্তাহের মুঠো সঞ্চালন-প্রসারণ ব্যায়ামও আপনার রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করবে। হাইপারটেনশন জার্নাল জানিয়েছে, এর মাধ্যমে আপনি রক্তের ঊর্ধ্বচাপ কমিয়ে আনতে পারেন প্রায় ১০ শতাংশ হারে।

vii) এড়িয়ে চলুন দূষিত বায়ু : সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বে দূষিত বায়ুর পরিমাণ বেড়েছে। আবহাওয়াবিদদের ভাষ্য মতে, শীতকালে সকালের দিকে বাতাসে দূষিত পদার্থের পরিমাণ বেশি থাকে। সাধারণত বাতাসে থাকা অতিরিক্ত ধাতব পদার্থ নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করে স্কন্ধদেশের ধমনিপ্রাচীরকে আরো পুরু করে তোলে, যে কারণে রক্ত সঞ্চালন বাধাগ্রস্ত হয়।

viii) সপ্তাহে দুইবার শারীরিক সম্পর্ক : গবেষণায় দেখা গেছে, সঙ্গীর সঙ্গে যাঁরা মাসে একবার শারীরিক সম্পর্ক করে থাকেন তাঁদের তুলনায় যাঁরা সপ্তাহে দুই বা তার বেশিবার করেন তাঁদের হার্ট বেশি সুস্থ থাকে। আমেরিকান জার্নাল অব কার্ডিওলজির মতে, শারীরিক সম্পর্ক হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াকে নিরাপদ করে তোলে, যেভাবে পোশাক তাপমাত্রার হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

ix) প্রতিদিন এক কাপ আখরোট : প্রতিদিন এক কাপ পরিমাণ আখরোট-জাতীয় ফল খেলে শরীরের রক্ত সঞ্চালনপ্রক্রিয়া কার্যকর হয়ে ওঠে। কেননা আখরোট-জাতীয় ফলে থাকে ওমেগা-৩ নামের চর্বি, যা বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে শক্তিশালী অবস্থান নেয় এবং এর ফলে দূষিত রক্ত নিয়মিত পরিসঞ্চালিত হয়ে হার্টের গতি স্বাভাবিক রাখে।

x) বেশি খান শিম, বরবটি : আলু কিংবা কলাই-জাতীয় খাবারের চেয়েও গুটিযুক্ত ফলধারী লতা, যেমন- শিম, বরবটি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় এগুলো রাখতে পারেন ওষুধ বিবেচনায়ও।

xi) দৌড়ান নিয়মিত : এটা একটা সাধারণ তরিকা। তবে হার্ট ভালো রাখতে হলে প্রতিদিন কমপক্ষে তিন কিলোমিটার করে দৌড়ানোর উপদেশ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এ ক্ষেত্রে দৌড় শুরুর আগে এবং শেষে হার্ট রেটের সংখ্যা লিপিবদ্ধ করারও অনুরোধ জানিয়েছেন তাঁরা।

xii) শ্বাসের গতি নিয়ন্ত্রণ করুন : না, নিজের ইচ্ছামতো গতিতে শ্বাস নিতে কিংবা ছাড়তে বলা হচ্ছে না। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন শ্বাসের ব্যায়াম করুন। উদাহরণ হিসেবে প্রথমে ৩০ সেকেন্ডে ছয়টি পূর্ণাঙ্গ শ্বাস-প্রশ্বাস সম্পন্ন করুন। এরপর সময়ের পরিমাণ কমাতে থাকুন। এ ব্যায়াম আপনার হৃদ সংকোচনসংক্রান্ত চাপ কমাতে ধন্বন্তরি ভূমিকা রাখবে।

xiii) দূরে থাক অবসাদ : কোনোভাবেই কাজের ক্লান্তিকে আপনার ওপর চেপে বসতে দেবেন না। এ জন্য মাঝেমধ্যেই অবসাদ দূর করতে আপনার পছন্দকে গুরুত্ব দিন। সুইজারল্যান্ডের এক গবেষণা জানিয়েছে, অবসাদ দূর করার তৎপরতা হৃদযন্ত্রের সংকট কাটায় ৫৭ শতাংশের কাছাকাছি।

xiv) বালিশে মাথা রাখুন সময়মতো : যাদের অনিদ্রা নামক রাজরোগ আছে, তারা অন্যদের চেয়ে ৪৫ শতাংশ বেশি হার্ট এটাকের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। তাই প্রয়োজন অনুযায়ী ঘুমের জন্য প্রতিদিন বেশি বেশি শারীরিক পরিশ্রম করার আহ্বান জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

xv) নাস্তি অধিক ঘুমেও : এমনকি যারা বেশি বেশি ঘুমকাতুরে তাদেরও সাবধান করে দিয়েছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। তাঁদের মতে, দিনে ১০ ঘণ্টা কিংবা তার বেশি সময় যাদের ঘুমে কাটে তাদের স্থূলতার পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে থাকে, কমতে থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও। সুতরাং অধিক ঘুমে নাস্তি।

xvi) ত্বকে দিন সূর্যের আলো : প্রতিদিন ২০ মিনিট করে সূর্যের আলোর সংস্পর্শে এলে শরীরে নাইট্রিক অক্সাইডের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ে, যা রক্তচাপকে কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।

xvii) পান করুন গরুর দুধ : গরুর দুধে থাকা লো ফ্যাট হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াবিরোধী কম ঘনত্বসম্পন্ন লিপ্রোপ্রোটিনের হার কমাতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দুধে থাকা ক্যালসিয়াম শরীরে জমে থাকা পুরু চর্বির স্তর কাটতে ভূমিকা রাখে।

10
Islam / কবর ভয়াবহ এক ঘাঁটি
« on: March 24, 2018, 09:49:20 AM »
কবর ভয়াবহ এক ঘাঁটি


কবরকে আমরা ওয়েটিং রুম হিসেবে বুঝে নিতে পারি। ওয়েটিং রুমে যেমন মানুষ তার পরবর্তী অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারে, আরামের হবে কিংবা কষ্টের হবে। আরামের হলে হেসেখেলে সময় পার করে। কষ্টের হলে এক ঘণ্টা এক বছরের মতো মনে হয় তারপরও সময় যেতে চায় না। অনুরূপ প্রত্যেকের কবরে কবরবাসীকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে সে জান্নাতি না জাহান্নামি।  জান্নাতি হলে সে বড় আরামে সময় পার করবে। আর জাহান্নামি হলে বড় কষ্টে সময় অতিবাহিত করবে। এ কবর এমন এক ঘাঁটি যেখানে সাহায্যের বা বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন বলতে কেউই থাকবে না। শুধুই নেক আমল হবে তার সাথী। দুনিয়ার হায়াতে নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, কোরআন তেলাওয়াতসহ ইত্যাদি নেক আমল তাকে আজাব থেকে রক্ষা করবে। মুনকির-নকির ফেরেস্তাদ্বয়ের প্রশ্নের উত্তর দিতে পারলে কবর উত্তম ঘাঁটি। আর উত্তর দিতে না পারলে ভয়াবহ ঘাঁটি। হজরত উসমান (রা.) যখন কোনো কবরের পাশে দাঁড়াতেন তখন এমনভাবে কাঁদতেন যে, নিজের দাড়ি মোবারক ভিজে যেত। একবার হজরতকে জিজ্ঞাসা করা হলো আপনি জান্নাত ও জাহান্নাম স্মরণ করে এত কাঁদেন না, যতটুকু কাঁদেন কবর দেখে, এর কারণ কী? তিনি বললেন, রসুল (সা.) বলেছেন, কবর হচ্ছে আখেরাতের প্রথম ঘাঁটি। এখানে যদি কেউ রক্ষা পেয়ে যায় তাহলে পরবর্তী সব ঘাঁটি তার জন্য সহজ হয়ে যায়। আর এখানে কেউ যদি রক্ষা না পায় তাহলে পরবর্তী সব ঘাঁটি তার জন্য খুব কঠিন হয়ে যায়। তিনি আরও বললেন, রসুল (সা.) বলেছেন, মেরাজের রজনীতে আমি যত ভয়াবহ দৃশ্য দেখেছি তার মধ্যে কবরের আজাবই হচ্ছে সবচেয়ে ভয়াবহ। (তিরমিজি শরিফ, হাদিস নং-২৩০৮)। প্রিয় পাঠক! বেনামাজির কবরে কী ধরনের আজাব হবে এ সম্পর্কে হাদিসে আছে, বেনামাজির কবরে তিন ধরনের শাস্তি হবে : ১. কবর তার জন্য এমন সংকীর্ণ হবে যে, এক পাশের বুকের হাড় আরেক পাশে ঢুকে যাবে। ২. তার কবরে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হবে। ৩. তার কবরে এমন একটি সাপ নিযুক্ত করা হবে যার চক্ষু হবে আগুনের। আর নখগুলো হবে লোহার। তার প্রত্যেকটি নখ লম্বা হবে একদিনের দূরত্বের পথ। সাপের আওয়াজ হবে বজ্রের ন্যায় বিকট। সাপ ওই বেনামাজিকে বলতে থাকবে ‘আমাকে আমার রব তোর ওপর নিযুক্ত করেছেন যাতে ফজরের নামাজ নষ্ট করার কারণে সূর্যোদয় পর্যন্ত তোকে দংশন করতে থাকি। জোহরের নামাজ নষ্ট করার কারণে আসর পর্যন্ত দংশন করতে থাকি। আসর নামাজ নষ্ট করার কারণে মাগরিব পর্যন্ত। আর মাগরিব নামাজ নষ্ট করার কারণে এশা পর্যন্ত। আর এশার নামাজ নষ্ট করার কারণে ফজর পর্যন্ত তোকে দংশন করতে থাকি।’

এ সাপ যখনই তাকে একবার দংশন করবে তখনই সে ৭০ হাত মাটির নিচে ঢুকে যাবে (উঠিয়ে আবার দংশন করবে) এভাবে কেয়ামত পর্যন্ত আজাব হতে থাকবে। নেক্কার ও বদকারের কবরের অবস্থা একটি দীর্ঘ হাদিসে এসেছে, হজরত বারা ইবনে আজিব (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুল (সা.) বলেছেন, মুমিন ব্যক্তির কবরে দুজন ফেরেশতা আসে ও তাঁকে বসায়। তারপর তাকে জিজ্ঞাসা করে, তোমার রব কে? সে উত্তর দেবে, আমার রব আল্লাহ। তারা তাকে জিজ্ঞাসা করে তোমার দীন কী? সে উত্তরে বলবে, আমার দীন হচ্ছে ইসলাম। তারা এবার তাকে জিজ্ঞাসা করে, ওই ব্যক্তি কে, যাকে তোমাদের কাছে পাঠানো হয়েছিল? সে উত্তর দেবে ইনি হচ্ছেন আমাদের রসুল (সা.)। তারা এবার তাকে জিজ্ঞাসা করবে (এ উত্তরগুলো) তুমি কীভাবে জানলে? সে বলবে আমি আল্লাহর কিতাব থেকে জেনেছি এবং তাঁর ওপর ইমান এনেছি। তখন রসুল (সা.) বলেন, এটাই হচ্ছে আল্লাহতায়ালার ওই বাণীর মর্ম, যেখানে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহ মুমিনদের দৃঢ় বাক্যের ওপর দৃঢ় রাখেন পার্থিব জীবনে ও আখেরাতে’ রসুল (সা.) বলেন, তখনই আসমান থেকে এক ঘোষণাকারী ডাক দিয়ে বলবেন, আমার বান্দা সত্য বলেছে। সুতরাং তাকে জান্নাতের বিছানা বিছিয়ে দাও। তাকে জান্নাতের পোশাক পরিয়ে দাও এবং তার দিকে জান্নাতের দরজা খুলে দাও। তখন তার জন্য জান্নাতের দরজা খুলে দেওয়া হয়। তার কাছে জান্নাতের শান্তি ও সুঘ্রাণ আসতে থাকে। কবরকে তার দৃষ্টিসীমা পর্যন্ত প্রশস্ত করে দেওয়া হয়। প্রিয় পাঠক! চলুন চলুন, আমরা সবাই কবরের আজাব থেকে বাঁচার উপায় কী? তা জেনে আমলে বাস্তবায়িত করি।

হাদিসে কবরের আজাব থেকে বাঁচার কয়েকটা আমলের কথা উল্লেখ আছে, সেখান থেকে এখানে আমি মাত্র দুটি উল্লেখ করছি। (১) রসুল (সা.) বলেছেন, সূরা মূলক কবরের আজাব থেকে রক্ষাকারী। যে ব্যক্তি এ সূরা পাঠ করবে, এ সূরা তাকে কবরের আজাব থেকে রক্ষা করবে। (কুরতুবি) রসুল (সা.) নিয়মিত রাতে ঘুমানোর আগে সূরা মূলক তেলাওয়াত করতেন। (২) কবরে আলো পাওয়ার আমল হলো পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ। হাদিসে আছে ‘নামাজ নূর বা আলো’ কবরে ও হাশরের ময়দানের আলো হবে নামাজ। আল্লাহতায়ালা আমাদের কবরের আজাব থেকে রক্ষা করুন।  আমিন।

লেখক : মুহাদ্দিস, মুফাসসির ও খতিব বারিধারা, ঢাকা।

11
স্মার্টফোন গরম হওয়ার কারণ ও প্রতিকার



আজকাল প্রায় সবাই স্মার্টফোন ব্যবহার করেন। তবে স্মার্টফোনের অন্যতম একটি সমস্যা হল- ব্যবহারের মাঝখানে খুবই গরম হয়ে যায়। স্মার্টফোন গরম হওয়ার বেশ কিছু কারণও আছে। আসুন স্মার্টফোন গরম হওয়ার কারণ ও প্রতিকার জেনে নেই। 

স্মার্টফোন যে কারণে গরম হয় : স্মার্টফোন বেশি গরম হওয়ার জন্য প্রথম কারণ প্রসেসর। সেটাই ফোনের প্রধান অঙ্গ। আপনি ফোন ব্যবহার করুন আর নাই করুন প্রসেসর সবসময় চলতে থাকে। তার কাজ করতে থাকে। প্রসেসর ফোনের বডির সঙ্গে লেগে থাকে। ফলে গরম অনুভূত হয়। এছাড়াও স্মার্টফোন দিন দিন পাতলা হলেও ব্যাটারির প্রযুক্তি সেভাবে উন্নত হয়নি। দুর্বল ব্যাটারি বেশি তাপ তৈরি করে। এছাড়াও দুর্বল নেটওয়ার্কের সিগনালের কারণেও ফোনটি গরম হতে পারে।

স্মার্টফোন গরম হওয়া বন্ধ করা যাবে যেভাবে :

১. স্মার্টফোন বেশি ব্যবহার করা যাবে না বা বেশি গেম খেলা যাবে না-এটা কিন্তু একেবারই ঠিক নয়। বরং খেয়াল রাখুন, ফোনে যেন সব সময় চার্জ থাকে। বিশেষ করে, ডাউনলোড করার সময়।

২. এক সঙ্গে বেশি অ্যাপস বা প্রোগ্রাম খুলে রাখবেন না। সফটওয়্যার নিয়মিত আপডেট করুন। কোন কোন অ্যাপস ব্যাকগ্রাউন্ডে বেশি জায়গা নিচ্ছে সেগুলো বন্ধ রাখুন।

৩. র‌্যাম ও ক্যাশ পরিষ্কার রাখুন। অপ্রয়োজনীয় মেসেজ ডিলিট করুন। অ্যানিমেশন বন্ধ রাখুন। অপ্রয়োজনে ওয়াই-ফাই অফ রাখুন।

৪. স্মার্টফোনের এমন কভার নিন যেটা ফোনের তাপ শুষে নিতে পারবে। বাইরের তাপ যেন ফোনকে আরও গরম করে না দেয়। ফোনকে যতটা সম্ভব রোদ থেকে দূরে রাখুন।

৫. রাতে স্মার্টফোন চার্জে দিয়েই ঘুমিয়ে যাবেন না। এতে স্মার্টফোনের দীর্ঘস্থায়িত্ব যেমন কমে তেমনি ফোনটি গরম করে ফেলে। এভাবে প্রায়ই স্মার্টফোনের ব্যাটারি বিস্ফোরণ হতেও দেখা যায়।

৬. অনেক সময় এটি হতে পারে ভাইরাস ও ম্যালওয়্যারের জন্য।

৮. ব্রাইটনেস বাড়ালে ফোনটি গরম হতে পারে। ব্রাইটনেস না বাড়িয়ে বরং একটি গ্লেয়ার স্ক্রিন ব্যবহার করুন।

12
একইসঙ্গে একাধিক ভিডিও কল করা যাবে হোয়াটস অ্যাপে



বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এবং বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে প্রায়ই নতুন নতুন ফিচার নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানোর ক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপের বেশ সুখ্যাতি রয়েছে। এই অ্যাপটি গত বছর চালু করেছিল ‘ভয়েস কলিং’ সুবিধা। এরপর চালু করে ওয়ান-টু-ওয়ান ভিডিও কলিং সুবিধা। আর এবার হোয়াটসঅ্যাপে যুক্ত হচ্ছে আরও একটি নতুন নাম-গ্রুপ ভিডিও কলিং। এর মাধ্যমে এখন থেকে হোয়াটসঅ্যাপে একইসঙ্গে একাধিক মানুষের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলা যাবে।

গত মাসে হোয়াটসঅ্যাপের সর্বশেষ সংস্করণ ২.১৭.৪৪৩ -এ গ্রুপ ভিডিও কলিং যুক্ত হওয়ার একটি ইঙ্গিত পাওয়া যায়। কিন্তু নতুন এই ফিচারটি সম্পর্কে এর বেশি বিশেষ কিছু জানা যায়নি।

জানা গেছে, অ্যাপটির নতুন আপডেটে ইউজরদের গ্রুপ কলিং সুবিধা দেওয়ার জন্য একটি নতুন অপশন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আপডেট হওয়া ফিচারে বর্তমানে গ্রুপ ভিডিওতে তিনজন সদস্য যোগ করার অপশন রয়েছে। অর্থাৎ নতুন এই ফিচারের মাধ্যমে সর্বাধিক পাঁচজন একইঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলা যাবে।

13
গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে যেসব প্রশ্নের উত্তর!



সভ্যতার শুরু থেকেই প্রতিনিয়ত মানুষ অজানাকে জানার চেষ্টা করে যাচ্ছে। আর বর্তমান বিশ্বে প্রযুক্তির কল্যাণে তথ্য ভান্ডারে পরিণত জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগল। তাই মানুষ এখন অনেক প্রশ্নেরই উত্তর মানুষ খোঁজে গুগলে। সম্প্রতি গুগল প্রকাশ করেছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ‘হাউ ‍টু ....’ অর্থাৎ ‘কিভাবে ...’- খোঁজা হয়েছে, এমন ১০টি বিষয়ের তালিকা।

তবে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেই বিশ্বে সবচেয়ে বেশি গুগলে সার্চ করা ১০টি ‘হাউ টু ...’- বিষয়ের তালিকা:

১. how to tie a tie (কিভাবে টাই বাঁধতে হয়)
২. how to kiss (কিভাবে চুমু দিতে হয়)
৩. how to get pregnant (কিভাবে গর্ভবতী হওয়া যায়)
৪. how to lose weight (কিভাবে ওজন কমানো যায়)
৫. how to draw (কিভাবে আঁকা যায়)
৬. how to make money (কিভাবে অর্থ উপার্জন করা যায়)
৭. how to make pancakes (কিভাবে প্যানকেক বানাতে হয়)
৮. how to write a cover letter (কিভাবে কভার লেটার লিখতে হয়)
৯. how to make french toast (কিভাবে ফ্রেঞ্চ টোস্ট বানাতে হয়)
১০. how to lose belly fat (কিভাবে পেটের মেদ কমানো যায়)

গুগলের ডাটা এডিটর সাইমন রজার্স বলেন, ‘সম্প্রতি আমরা লক্ষ্য করেছি যে, গুগলে ‘হাউ টু ....’ প্রশ্ন খোঁজা ২০০৪ সাল থেকে বর্তমানে ১৪০ শতাংশের বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এর মধ্যে বেশিরভাগ জিনিসপত্রের সমাধান সম্পর্কিত প্রশ্ন যেমন লাইটবাল্ব, জানালা, ওয়াশিং মেশিন এমনকি টয়লেট পর্যন্তও রয়েছে।

14
সৃষ্টিকে ভালোবেসে মানুষ হই

বিজ্ঞানের হাত ধরে আমাদের পৃথিবী এগিয়ে গেছে অনেক দূর। কিন্তু পিছিয়ে গেছি আমরা। বিজ্ঞানের যত আবিষ্কার সব মানুষের কল্যাণের জন্যই করা হয়েছে। কিন্তু আমরাই আমাদের নীতি-নৈতিকতা বিসর্জন দিয়ে এ সুন্দর পৃথিবীকে বিষিয়ে তুলেছি। আবিষ্কার করেছি মানুষ ধ্বংসের হাতিয়ার। ব্যক্তিগত আক্রমণ থেকে শুরু করে জাতি ও দেশ-বিদেশের যুদ্ধগুলোতেও ব্যবহার করছি আমাদের আবিষ্কার করা মারণাস্ত্রগুলো। যখন এসব আবিষ্কার হয়নি, তখনো রাহাজানি খুনোখুনি ছিল। কখনো যদি এ মারণাস্ত্রগুলো ধ্বংস হয়ে যায় তখনো বিশ্বে খুনোখুনি থাকবে। কারণ, খুনের বীজ মারণাস্ত্রে থাকে না, থাকে মানুষের মনে। মানুষের মনেই খুনের নেশা চাপে। মনের রাগ-ক্ষোভ-লোভ থেকেই খুনের ইচ্ছা জাগে। তখনই এক মানুষ আরেক মানুষকে খুন করে বসে।

 যেমন প্রবৃত্তির তাড়না থেকে আপন ভ্রাতৃঘাতক খুন করেছিল হাবিলকে। হায়! মানুষ কীভাবে আরেক মানুষকে খুন করে। এ জন্যই কী ফেরেশতাদের আপত্তির জবাবে আল্লাহ খুব গর্ব করে বলেছিলেন— ইন্নি আলামু মালাতালামুন। আমি যা জানি তোমরা তা জান না। ছিঃ মানুষ ছিঃ! আল্লাহর সেই গর্বভরা মুখখানি কীভাবে তুমি মলিন করে দাও? কীভাবে তুমি আরেক আদম সন্তানের বুকে ধ্বংসের বুলেট ছুড়ো? তোমার কি একটুও মায়া লাগে না? অন্তরের গভীরে কি একবিন্দুও দরদ জাগে না? সেও তো মানুষ। সেও তো কোনো না কোনো মায়ের সন্তান। তারও তো তোমার মতো ফুটফুটে সন্তান আছে। আছে প্রাণ-প্রেয়সী। অন্যায়ভাবে কাউকে খুন করা আল্লাহর কাছে সবচেয়ে বড় গুনাহগুলোর মধ্যে একটি।

সহি বোখারি-মুসলিমের একাধিক বর্ণনায় রসুল (সা.) বলেছেন, সাতটি ভয়ঙ্কর কবিরা গুনাহর প্রথমটি হলো আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক করা। আর দ্বিতীয়টি হলো- অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা। কাউকে হত্যা করা শুধু বড় গুনাহই নয় বরং কোরআনের ভাষায় একজন নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করা মানে গোটা পৃথিবীর মানুষকে হত্যা করা। কেননা, গোটা পৃথিবীর মানুষের জীবনের বিনিময়ে একজন মানুষের জীবন সৃষ্টি করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। আল্লাহ বলেন, ‘মান কাতালা নাফসান বিগায়রি নাফসিন আও ফাসাদিন ফিল আরদি ফাকাআন্নামা কাতালানন্নাসা জামিআ। কেউ যদি কোনো মানুষকে অন্যায়ভাবে হত্যা করে তবে সে যেন পৃথিবীর সব মানুষকেই হত্যা করে ফেলল।’ (সূরা মায়েদা : ৩২।) হাদিস শরিফে রসুল (সা.) বলেছেন, ‘পৃথিবীর সব মানুষ মিলে যদি একজন নিরপরাধ মানুষকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয়, তবে আল্লাহতায়ালা সব মানুষকেই জাহান্নামে দেবেন তারপরও অন্যায়ভাবে হত্যাকে মেনে নেবেন না।’ (মুসনাদে বাজজার।) আকদিয়াতুর রসুল (সা.) গ্রন্থে ইমাম কুরতুবি (রহ.) একটি হাদিস উল্লেখ করেছেন, রসুল (সা.) বলেছেন, কোনো মানুষ যদি আরেকজন নিরপরাধ মানুষকে হত্যায় মুখের একটি কথা দিয়েও সাহায্য না করে, তাহলে কেয়ামতের দিন তার কপালে লেখা থাকবে— এ ব্যক্তি আল্লাহর দয়ার চাদর থেকে বঞ্চিত।

বোখারির বর্ণনায় রসুল (সা.) বলেছেন, কোনো মুমিন বান্দা যতক্ষণ পর্যন্ত অবৈধ হত্যায় জড়িয়ে না পড়বে ততক্ষণ পর্যন্ত আল্লাহর রাগ থেকে বেঁচে যাবে। আরেকটি বর্ণনায় রসুল (সা.) বলেছেন, কোনো মুমিন বান্দা যদি আল্লাহর কাছে এমন অবস্থায় হাজির হয় যে, সে কারও রক্ত নিয়ে খেলেনি, তাহলে আল্লাহর দায়িত্ব হয়ে যায় তাকে ক্ষমার চাদরে ঢেকে নেওয়া। শিরকের পর সবচেয়ে বড় গুনাহ হলো কাউকে হত্যা করা। আর কাউকে হত্যা না করা হলো জান্নাত পাওয়ার গ্যারান্টি। রসুল (সা.) বলেছেন, কেউ যদি মুমিন ব্যক্তির রক্তে নিজেকে কলুষিত না করে তবে সে জাহান্নাম থেকে বেঁচে যাবে। একটি কাজ থেকে বিরত থেকে কত সহজেই না জান্নাত পেতে পারি আমরা। আবার ওই কাজটি করেই আমাদের দুনিয়া-আখেরাত ধ্বংস করে ফেলতে পারি অনায়াসে। আফসোস! আমরা আখেরাতকে সুন্দর করার চেয়ে আখেরাত ধ্বংসের পথেই যেন এগিয়ে যাচ্ছি দুর্বার গতিতে। আমাদের দেশে প্রতিদিন শত শত অন্যায় হত্যার ঘটনা ঘটছে। পেপার-টেলিভিশন খুললেই এসব ঘটনা আমাদের হৃদয়কে নাড়িয়ে দেয়। অথচ এসব হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠুবিচার এবং প্রতিরোধের কোনো শুভ উদ্যোগ চোখে পড়ছে না। হে আল্লাহ! আমাদের মনে আখেরাতের ভয় জাগিয়ে দিন। অন্যায়ভাবে কাউকে আঘাত করা থেকে আমাদের বাঁচিয়ে রাখুন। আমিন।

লেখক : বিশিষ্ট মুফাসিসরে কোরআন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব।

15
Islam / পরকালের পাঁচ স্টেশন
« on: March 11, 2018, 10:44:15 AM »
পরকালের পাঁচ স্টেশন

প্রত্যেক মানুষ মৃত্যুবরণ করবে। পৃথিবীর কেউ মৃত্যুর কবল থেকে নিস্তার পাবে না। আল্লাহ বলেন, ‘প্রত্যেককেই মৃত্যুর স্বাদ আস্বাদন করতে হবে।’ (সূরা আলে ইমরান : ১৮৫)। এতে সুস্পষ্ট প্রমাণিত হয়, সবাইকে একদিন অবশ্যই আখিরাতের সফর করতে হবে। সেই পরিভ্রমণের লক্ষ্যের কিনারায় উপনীত হওয়ার জন্য কয়েকটি মঞ্জিল বা স্টেশন অতিক্রান্ত করা অপরিহার্য, সেগুলো হলো—

 
প্রথম মঞ্জিল :
প্রথম মঞ্জিল ‘সকরাতুল মাওত’ তথা মৃত্যুর দুর্বিষহ কষ্টের মঞ্জিল। এই ভয়াবহ অবস্থা প্রকাশ পাওয়ার আগমুহূর্ত পর্যন্ত মানব জাতির জন্য তওবার দরজা অবারিত থাকে। এ সময় সৎ ব্যক্তিদের অভ্যর্থনা দেওয়ার জন্য জান্নাত থেকে ফেরেশতা অবতরণ করেন। এ জন্য অনেক সময় মৃত্যুর আগে আওয়াজ আসে, ‘হে প্রশান্ত অন্তর! তুমি তোমার পালনকর্তার কাছে ফিরে যাও সন্তুষ্ট ও সন্তোষভাজন হয়ে। অতঃপর আমার বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাও এবং আমার জান্নাতে প্রবেশ কর।’ (সূরা আল ফজর : ২৭-৩০)। পক্ষান্তরে পাপিষ্ঠ ব্যক্তিদের মৃত্যুর সময় জাহান্নাম থেকে ফেরেশতারা নেমে আসেন। এ সময় তারা তাদের রুহু কবজ করাকালে দুর্গন্ধ অনুভব করেন। এর ফলে ফেরেশতারা নাসিকা বস্ত্র দ্বারা আবৃত করেন।

দ্বিতীয় মঞ্জিল :
 মানব জাতির জন্য সফরে আখিরাতের দ্বিতীয় মঞ্জিল হচ্ছে কবর। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, ‘তোমরা কবরকে মাটির স্তূপ মনে করো না বরং কবর হচ্ছে জান্নাতের বাগিচা অথবা জাহান্নামের গর্তের মধ্য থেকে একটি গর্ত।’  (তিরমিজি)।

তৃতীয় মঞ্জিল :
সফরে আখিরাতের তৃতীয় মঞ্জিল হাশর। হাদিসে বিধৃত হয়েছে, কাফিরদের জন্য হাশরের এক দিন ৫০ হাজার বছরের সমতুল্য, পক্ষান্তরে মুমিনদের জন্য ক্ষণিকের বরাবর হবে। সেদিন আল্লাহর আরশের ছায়া ছাড়া কোনো ছায়া থাকবে না। সেই ছায়াতলে শুধু সাত ধরনের বান্দা স্থান পাবে। এক. ইনসাফ প্রতিষ্ঠাকারী শাসক। দুই. সেসব যুবক, যারা যৌবনকালে আল্লাহর ইবাদতে রত ছিল। তিন. সেই ব্যক্তি, যার অন্তর মসজিদের দিকে অটুট থাকে। চার. সেই দুই ব্যক্তি, যাদের মাঝে আল্লাহর জন্য ভালোবাসা সৃষ্টি হয়েছে। এই ভালোবাসার ভিত্তিতে তারা সংঘবদ্ধ হয়েছে এবং এরই ভিত্তিতে তাদের বিচ্ছেদ হয়েছে। পাঁচ. সেই ব্যক্তি, যাকে পরমাসুন্দরী মহিলা নিজের দিকে আকৃষ্ট করতে চেয়েছিল, আর সে আল্লাহর ভয়ে তা প্রত্যাখ্যান করেছে। ছয়. সেসব ব্যক্তি, যারা নির্জনে আল্লাহর জিকির করে এবং তাদের চোখ থেকে অঝরে অশ্রু প্রবাহিত হতে থাকে। (বুখারি)।

চতুর্থ মঞ্জিল : সফরে আখিরাতের চতুর্থ মঞ্জিল হচ্ছে মিজান। মিজানের সময় সবার আশঙ্কা থাকে, নেক আমলের পাল্লা ভারী হবে না গুনার পাল্লা ভারী হবে।

পঞ্চম মঞ্জিল :
সফরে আখিরাতের পঞ্চম মঞ্জিল হচ্ছে পুলসিরাত। এটি এমন পুল, যা চুলের চেয়েও অধিক সূক্ষ্ম এবং তলোয়ারের চেয়েও অধিক তীক্ষ। এর ওপর দিয়ে সব মানুষকে অতিক্রম করতে হবে। এটি হবে তিমিরাচ্ছন্ন এক ভয়ানক সেতু, যা অতিক্রমকালে মুমিনদের সম্মুখে ইমানের আলোকরশ্মি উদ্ভাসিত হয়ে উঠবে। অবিশ্বাসীদের কাছে আলো থাকবে না। ফলে তারা মুমিনদের কাছে আলো প্রার্থনা করবে। কিন্তু তাদের তা দেওয়া হবে না। মুমিন ও কাফিরদের মাঝে একটি দেয়াল তোলা হবে।

লেখক : খতিব : বাইতুন নূর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, দক্ষিণ পীরেরবাগ, ওলি মার্কেট, ঢাকা।

Pages: [1] 2 3 ... 42