Daffodil International University

Faculties and Departments => Business & Entrepreneurship => Business Administration => Topic started by: tamim_saif on November 22, 2012, 12:07:47 PM

Title: Bangladesh proposes autism support at UN
Post by: tamim_saif on November 22, 2012, 12:07:47 PM
(http://www.bdnews24.com/nimage/2012-11-20-21-58-22-Saima-TM.jpg)
Sheikh Saima Hussain Putul leads the way to rally countries behind it.

 
Title: শরীর সতেজ রাখতে সুইমিং
Post by: Muntachir Razzaque on November 22, 2012, 03:56:24 PM
প্রতিদিন কিছু না কিছু ব্যায়াম বা শরীর চর্চা করা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। ব্যায়ামের মধ্যে হাঁটা, জগিং করা, ট্রেডমিল, দৌড়ানো, সাইক্লিং, সুইমিং ইত্যাদি রয়েছে। বিজ্ঞানীরা এক গবেষণায় দেখেছেন যারা নিয়মিত সুইমিং করেন তাদের হার্ট বিট ভালো থাকে, মাংসপেশীর সংকোচন প্রসারণ স্বাভাবিক থাকে এবং শরীরে রক্ত চলাচল অন্যান্য ব্যায়ামের তুলনায় দ্রুততর হয় এবং রক্ত সঞ্চালন সুষমভাবে বিস-ৃত হয়। এছাড়া সুইমিং করলে শরীর থেকে পানি বের হয় না। ফলে খনিজ লবণের ওপর কোন প্রভাব পড়েনা। সুইডিস বিজ্ঞানীরা জগিং, ট্রেডমিল এবং সুইমিং তিন ধরণের ব্যায়ামের তুলনামূলক জরীপ করে দেখেছেন যারা নিয়মিত সুইমিং করেণ তারা অন্যাদের থেকে শারীরিকভাবে অধিক সামর্থ্যবান থাকেন এবং মানসিক চাপ তাদের অনেক কম থাকে। গবেষণায় আরও বলা হয়েছে।

এছাড়া সুইমিং পেরিফেরাল ব্লাড সার্কুলেশন বাড়ায়। ফলে সুইমিং করার পর শারীরিক যোগ্যতা অনেক বেড়ে যায়। তবে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট ব্যায়াম করার কথা বলা হলেও প্রতিদিন কমপক্ষে কত মিনিট সুইমিং করতে হবে তা সুনির্দিষ্ট ভাবে বলা হয় নি। তবে সুইমিং এর ক্ষেত্রে প্রতিদিন সকালে অথবা সন্ধ্যায় অন-ত: ২০ মিনিট থেকে ১ ঘন্টা পর্যন- সুইমিং করতে পারেন।

ডাঃ মোড়ল নজরুল ইসলাম
সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক, ডিসেম্বর ১৫, ২০০৯
Title: holiday
Post by: Shamraat on November 24, 2012, 01:21:11 AM
     
25 November is govt. holiday.Will our varsity be off that day?
Title: Vitamin D's benefits
Post by: tamim_saif on November 24, 2012, 06:26:46 PM
Vitamin D's benefits include:
•   It brings calcium to your bones and teeth, helping to protect you against bone diseases such as osteoporosis. Its role in bone health is probably the best-known vitamin D benefit, Anding says.
•   It regulates how much calcium stays in your blood, contributing to heart health.
•   It helps strengthen your immune system and regulate cell growth.
Title: কারবালা ইতিহাস
Post by: Md. Khairul Bashar on November 26, 2012, 05:05:02 PM
হিজরি সালের প্রথম মাস মহররমের ১০ তারিখ। এই দিনে অন্যায় ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে ইসলামের শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর দৌহিত্র হজরত ইমাম হোসাইন (রা.) চক্রান্তকারী ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে কারবালায় মর্মান্তিকভাবে শাহাদাতবরণ করেন। বিশ্বের মুসলমানদের কাছে দিনটি একদিকে যেমন শোকের, তেমনি অন্যায় ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ার চেতনায় উজ্জ্বল।
ইসলামের ইতিহাসে কারবালার এই শোকাবহ ঘটনার আগেও এ দিনে নানা তাৎপর্যময় ঘটনা ঘটেছে। ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে অবরুদ্ধ হয়ে পরিবার-পরিজন, সঙ্গী-সাথিসহ হজরত ইমাম হোসাইন (রা.)-এর শাহাদাতবরণের এই মর্মান্তিক ঘটনা ছাড়া এই দিনে অনেক ঐতিহাসিক ও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে বলে হাদিস শরিফে উল্লেখ রয়েছে। আদি মানব হজরত আদম (আ.) এই দিনে পৃথিবীতে আগমন করেন এবং এই দিনই তাঁর তওবা কবুল হয়। এই ১০ মহররম তারিখে হজরত নূহ (আ.)-এর নৌকা মহাপ্লাবন থেকে রক্ষা পায়। এর বাইরেও এই মহিমাময় দিনে আরও অনেক তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনার উল্লেখ রয়েছে ইসলামের ইতিহাসে। হাদিস শরিফে আছে, মহররম মাসের ১০ তারিখ, অর্থাৎ শোকাবহ এই আশুরার দিনেই কেয়ামত ঘটবে।
ইসলামের ইতিহাসে ১০ মহররম তারিখটির নানা গুরুত্ব ও তাৎপর্য থাকলেও কারবালায় ঘটে যাওয়া সর্বশেষ মর্মান্তিক ঘটনার স্মরণেই বর্তমান দুনিয়ার মুসলমানরা দিনটি পালন করে থাকেন। মুসলমানরা ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে এই দিনে রোজা পালন করেন। ইতিহাস থেকে জানা যায়, মুয়াবিয়ার মৃত্যুর পর তাঁর ছেলে ইয়াজিদ অবৈধভাবে ক্ষমতা ধরে রাখার জন্য চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করেন এবং এ জন্য ষড়যন্ত্র ও শক্তি ব্যবহারের পথ বেছে নেন। চক্রান্তের অংশ হিসেবে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর আরেক দৌহিত্র হজরত ইমাম হাসান (রা.)-কে বিষপান করিয়ে হত্যা করা হয়। একই চক্রান্ত ও নিষ্ঠুরতার ধারাবাহিকতায় ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে অবরুদ্ধ হয়ে পরিবার-পরিজন ও ৭২ জন সঙ্গীসহ শাহাদাতবরণ করেন হজরত ইমাম হোসাইন (রা.)। তাঁদের হত্যার ক্ষেত্রে যে নিষ্ঠুর-নির্মম পথ বেছে নেওয়া হয়েছে, ইতিহাসে এ ধরনের উদাহরণ বিরল। অসহায় নারী ও শিশুদের পানি পর্যন্ত পান করতে দেয়নি ইয়াজিদ বাহিনী। বিষাক্ত তিরের আঘাতে নিজ কোলে থাকা শিশুপুত্রের মৃত্যুর পর আহতাবস্থায় অসীম সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই করে শহীদ হন হজরত ইমাম হোসাইন (রা.)।
আশুরার এই ঐতিহাসিক ঘটনার মূল চেতনা হচ্ছে ক্ষমতার লোভ, ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য চক্রান্ত ও নিষ্ঠুরতার বিরুদ্ধে ন্যায় ও সত্য প্রতিষ্ঠার লড়াই। বর্তমান দুনিয়ায় আশুরার এই শিক্ষা খুবই প্রাসঙ্গিক। অন্যায় ও ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আপসহীন অবস্থান ও ত্যাগের যে শিক্ষা কারবালার ঘটনা মানবজাতিকে দিয়েছে, তা আজকের দুনিয়ার অন্যায় ও অবিচার দূর করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে। কারবালার শিক্ষা হোক আমাদের পাথেয়।

Title: More Facebook friends = more stress, poll finds
Post by: monirul on November 27, 2012, 03:48:31 PM
We all want more pals, but a Scottish survey suggests you should think twice before accepting your mom's friend request.

The whole point of Facebook is to keep up with your friends, right? You might think that adding friends means having more fun, but a small Scottish study says it's adding to our stress.
A report by the University of Edinburgh Business School has found that increasing friends -- specifically different groups of friends -- increases the potential for stress.
It's hardly earth-shattering news, but including parents or employers as Facebook friends resulted in the greatest increase in anxiety, according to the report.
"Stress arises when a user presents a version of [herself or himself] on Facebook that is unacceptable to some of their online 'friends,' such as posts displaying behavior such as swearing, recklessness, drinking, and smoking," the university said in a release.
"The more social circles a person is linked to online the more likely social media will be a source of stress."

Researchers surveyed 300 people, mostly students around 21 years old. They found that Facebook users have an average of seven different social circles.
"The most common group was friends known offline (97 percent added them as friends online), followed by extended family (81 percent), siblings (80 percent), friends of friends (69 percent), and colleagues (65 percent)."
The research follows studies suggesting Facebook is the second-most depressing activity cited by users, just under recovery from illness, and that those who frequent the site can suffer from Facebook envy.
Another finding from the Edinburgh poll is that more users are Facebook friends with former partners than their current boyfriend, girlfriend, or spouse. Also, only one-third of respondents said they use the listing privacy setting on their profile, which controls how information is seen by different types of friends.
"Facebook used to be like a great party for all your friends where you can dance, drink and flirt," report author Ben Marder of the Business School was quoted as saying. "But now with your Mum, Dad, and boss there, the party becomes an anxious event full of potential social landmines."

link: http://news.cnet.com/8301-17938_105-57554356-1/more-facebook-friends-more-stress-poll-finds
Title: Grande Ravine Bridge...................Reunion Island, France.
Post by: nature on November 27, 2012, 10:54:40 PM
Description: 532 feet high / 162 meters high
940 foot span / 287 meter span


(http://www.highestbridges.com/wiki/images/thumb/1/17/1GrandeRavineGregoryViel7.JPG/750px-1GrandeRavineGregoryViel7.JPG)

Réunion Island is a French territory located east of Madagascar Island in the Indian Ocean. Just 35 miles (56 kms) across, the region has become a popular tourist getaway as well as a permanent home to more than 800,000 residents.

Travel between the many coastal communities on Réunion Island has always been through a network of older, two lane roads that traverse in and around many deep rifts cut from rain runoff tumbling down the tall volcanic peaks that created the island. To relieve congestion on the west side, it was decided to build a 30 mile (50 km) north-south highway called the Route des Tamarins. Crossing dozens of huge ravines, the new route required the construction of 3 tunnels, 9 interchanges and 4 major bridges including the Saint Paul, the Trois Bassins and the Ravine Fontaine viaducts. The longest and highest crossing of all is the one over Grande Ravine.

Dropping almost vertical for much of its 532 foot (162 mtr) depth, the Grande Ravine site is perfect for a frame bridge. The design chosen by the engineers is a sleek, stealthy looking span with a 940 foot (286.5 mtr) long span box girder resting on two angled struts of just 20 degrees - an incline so shallow they almost look as level as the road deck! The concrete struts are part of a cantilever that is counterweighted on the back sides by two large abutments filled with tons of soil. Like many strut frame bridges that are hard to categorize among bridge types, Grande Ravine is especially complex with an arch effect only occurring under service loads. To construct the main span without using wind prone towers and a high line, the famous French bridge company Freyssinet designed a unique stay cable system to support the two half decks as they were launched out from either side of the canyon.

(http://www.greisch.com/news/20060807-grande_ravine.jpg)

(http://www.highestbridges.com/wiki/images/thumb/8/82/7GrandeRavineGregoryViel6.JPG/750px-7GrandeRavineGregoryViel6.JPG)



Title: International Cricket Schedule: December 01 to December 10, 2012
Post by: tamim_saif on November 28, 2012, 10:02:51 AM
December 2012
01 Sat   
South Africa in Australia Test Series, 2012/13
Australia v South Africa at Perth, 3rd Test - Day 2
02 Sun   
South Africa in Australia Test Series, 2012/13
Australia v South Africa at Perth, 3rd Test - Day 3
West Indies in Bangladesh ODI Series, 2012/13
Bangladesh v West Indies at Khulna, 2nd ODI
03 Mon   
South Africa in Australia Test Series, 2012/13
Australia v South Africa at Perth, 3rd Test - Day 4
04 Tue   
South Africa in Australia Test Series, 2012/13
Australia v South Africa at Perth, 3rd Test - Day 5
05 Wed   
England in India Test Series, 2012/13
India v England at Kolkata, 3rd Test - Day 1
West Indies in Bangladesh ODI Series, 2012/13
Bangladesh v West Indies at Dhaka, 3rd ODI
06 Thu   
England in India Test Series, 2012/13
India v England at Kolkata, 3rd Test - Day 2
07 Fri   
England in India Test Series, 2012/13
India v England at Kolkata, 3rd Test - Day 3
West Indies in Bangladesh ODI Series, 2012/13
Bangladesh v West Indies at Dhaka, 4th ODI
08 Sat   
England in India Test Series, 2012/13
India v England at Kolkata, 3rd Test - Day 4
West Indies in Bangladesh ODI Series, 2012/13
Bangladesh v West Indies at Dhaka, 5th ODI
09 Sun   
England in India Test Series, 2012/13
India v England at Kolkata, 3rd Test - Day 5
10 Mon   
West Indies in Bangladesh T20I Match, 2012/13
Bangladesh v West Indies at Dhaka, Only T20I
Title: Definitions of terms related to food and nutrition security
Post by: tamim_saif on November 28, 2012, 12:39:25 PM
Nutritional status: The physiological condition of an individual that results from the balance between nutrient requirements and intake and the ability of the body to use these nutrients.

Hunger: People experience the sensation of hunger when they lack the basic food intake
necessary to provide them with the energy and nutrients for fully productive and active lives. Hunger principally refers to inadequate consumption of the macronutrients, carbohydrates in particular, and is an outcome of food insecurity. All hungry people are food insecure, but not all food-insecure people are hungry.

Malnutrition: A physical condition or process that results from the interaction of inadequate diet and infection and is most commonly reflected in poor infant growth; reduced cognitive development, anemia, and blindness in those suffering severe micronutrient deficiency; and excess morbidity and mortality in adults and children alike. Undernutrition and overnutrition are two forms of malnutrition.

Undernutrition: Malnutrition due to inadequate food consumption or poor absorption or biological use of nutrients consumed due to illness, disease, or nutrient imbalance. In addition to absolute deficit in food consumption, undernutrition frequently results from imbalanced diets in which sufficient macronutrients (carbohydrates, fat, protein) but insufficient vitamins and minerals (in particular the micronutrients iron, iodine, zinc, and vitamin A) are consumed, resulting in various physiological disorders and increased susceptibility to disease.
Moreover, although most individuals suffering from undernutrition are food insecure, an individual or household can be food secure but undernourished. For example, an individual who is food secure but suffers from frequent and severe bouts of diarrhea will not be able to use the food for growth and development and will experience undernutrition. Conversely, a hungry person may not necessarily be undernourished if the hunger is only of a temporary nature, having only been experienced for a few days.

Overnutrition: Malnutrition due to an excess of certain nutrients such as saturated fats and added sugars in combination with low levels of physical activity that may result in obesity, heart disease  and other circulatory disorders, diabetes, and similar diseases. While individuals suffering from overnutrition are food secure, they do not enjoy nutrition security, and although the majority of malnourished individuals in Africa are undernourished, problems of overnutrition are also present.

Vulnerability: The presence of factors that place people at risk of becoming food insecure or malnourished, whether due to loss of access to food, proper nutritional care, or an inability to physiologically utilize available food because of infection or other disease.

Sources: HTF 2003; FIVIMS/FAO 2002.
Title: Re: Grande Ravine Bridge...................Reunion Island, France.
Post by: goodboy on November 28, 2012, 02:10:31 PM
great!
Title: রিপলি’স কার্টুনে রূপকথা
Post by: Md. Khairul Bashar on November 28, 2012, 03:50:12 PM

রিপলি’স কার্টুনে রূপকথা (বাঁয়ে)

বিস্ময়কর বিভিন্ন ঘটনা সংরক্ষণ ও প্রকাশের জন্য বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠান রিপলিস বিলিভ ইট অর নটের কার্টুনে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশের ছয় বছর বয়সী রূপকথা—যার পুরো নাম ওয়াসিক ফারহান।
যুক্তরাষ্ট্রের কার্টুনিস্ট রবার্ট রিপলির নামে চালু হওয়া রিপলিস বিলিভ ইট অর নট! সারা বিশ্বের বিভিন্ন আশ্চর্যজনক ঘটনার স্বীকৃতি দিয়ে থাকে। এসব নিয়ে করা হয় সংবাদপত্রের প্যানেল সিরিজ, রেডিও এবং টেলিভিশন আয়োজন। এ ছাড়া এর অন্যান্য কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে চেইন মিউজিয়াম, কমিক বই ইত্যাদি। ২৫ নভেম্বর রিপলিস কার্টুন সিরিজে প্রকাশিত হয়েছে ঢাকার ওয়াসিক ফারহানের কার্টুন (www.ripleys.com/weird/videos-and-oddities/ripleys-syndicated-cartoons/cartoon-11-25-2012)।

মাত্র ছয় বছর বয়সে কম্পিউটার প্রোগ্রাম লেখার কৃতিত্ব হিসেবে এ তালিকায় যুক্ত হয়েছে রূপকথার নাম। ‘ওয়ান্ডার বয়’ শিরোনামে প্রকাশিত কার্টুনটিতে দেখানো হয়েছে ল্যাপটপে কাজ করছে রূপকথা, আর লেখা রয়েছে ‘বাংলাদেশের ওয়াসিক ফারহান রূপকথা। মাত্র ছয় বছর বয়সে যে কম্পিউটার সফটওয়্যার প্রোগ্রাম করতে পারে!’। রূপকথা গতকাল মঙ্গলবার প্রথম আলোকে জানায়, ‘ভালো লাগছে আমার ছবি দেখে। আরও ভালো করতে চাই।’ রূপকথার এই তথ্য রিপলিসে জমা দিয়েছেন তার মা সিনথিয়া ফারহিন।

রিপলিসের পরবর্তী বইতেও যুক্ত হচ্ছে রূপকথার কার্টুনটি। এ বিষয়ে রিপলিস পাবলিশিংয়ের জ্যেষ্ঠ গবেষক জেমস প্রাউড এক চিঠিতে জানিয়েছেন, ‘ইতিমধ্যে আমরা রূপকথার কার্টুনটি প্রকাশ করেছি। এর পাশাপাশি আমাদের পরবর্তী প্রকাশিত বইয়েও বিষয়টি যুক্ত করব।’ সিনথিয়া ফারহিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘অনেক ভালো লাগছে। এমন ভালো কিছু একটার অপেক্ষায় ছিলাম অনেক দিন ধরেই। এটা একটা বড় অর্জন বলে আমি মনে করি।’
মাত্র তিন বছর বয়স থেকে অভিজ্ঞ ব্যবহারকারীর মতো কম্পিউটারে বেশ দক্ষতা অর্জন করে রূপকথা। কম্পিউটার শেখে আরও আগে। রূপকথার বাসা ঢাকার নিকেতন এলাকায়। তার বাবা ওয়াসিম ফারহান একজন ব্যবসায়ী।


সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-11-28/news/308909
Title: FOR THOSE WHO WANTS TO GO ABROAD FOR HIGHER STUDIES
Post by: TOFAZZAL on November 29, 2012, 03:07:38 AM
In this document, you will get the details of all the documents (name and short link).

Modification rights to ADMINS ONLY.

MUST READ DOCUMENTS FOR EVERYONE

WELCOME
http://on.fb.me/WelcomeSchBD

FAQ - Frequently Asked Questions
http://on.fb.me/FAQSchBD

Preparation for Higher Study
http://on.fb.me/PrepHigherStudy

Study/Fund Finder links
http://on.fb.me/StudyFinder

====================================================
USEFUL DOCUMENTS

Recent Vacancies/Deadlines
http://on.fb.me/RecentVacancies

Undergraduate Scholarships
http://on.fb.me/UndergradSch

Recommended Do's and Don'ts while asking a scholarship
http://on.fb.me/RecomDo

SOP sample:: More than 60 sop sample
http://on.fb.me/SOPsample

Standardized Test
http://on.fb.me/StdTests

General Links
http://on.fb.me/GenLinks

Success Stories
http://on.fb.me/SchBDSuccess

=====================================================
SUBJECT SPECIFIC SCHOLARSHIPS
It's hard to compile subject specific scholarship documents. In this section, you will find some information on some specific subjects. For other subjects please search in the country specific documents.

Subject-wise info (Not completed yet)
http://on.fb.me/SubjectsSch

All about MBA
http://on.fb.me/MBASch

Textile and related discipline
http://on.fb.me/TextileRelatedSch

Biotechnology and Genetics
http://on.fb.me/BiotechGen

=====================================================

COUNTRY SPECIFIC SCHOLARSHIPS

NORTH AMERICA
 
Dream America :)
http://on.fb.me/SchUS

Scholarship in Canada
http://on.fb.me/CanadaSch
=========================

EUROPE
 
Erasmus Mundus
http://on.fb.me/ErasmusMundusSch

UK funding opportunities
http://on.fb.me/UKScholarships

Scholarships in Ireland
http://on.fb.me/IrelandSch

Opportunities in the Netherlands
http://on.fb.me/DutchSch

Higher Studies in Belgium
http://on.fb.me/SchBelgium

Scholarships in Germany
http://on.fb.me/GermanySch

Study in Italy
http://on.fb.me/ItalySch

Higher Studies in Austria
http://on.fb.me/SchAustria

What about Sweden?
http://on.fb.me/SwedenSch

Scholarships in Norway
http://on.fb.me/NorwaySch

Denmark
http://on.fb.me/DenmarkSch

Scholarships in Finland
http://on.fb.me/FinlandSch

Scholarships in Switzerland
http://on.fb.me/SwissSch

Russian Government Scholarship
http://on.fb.me/RussiaSch

==========================
ASIA AND AUSTRALIA

সিঙ্গাপুরে উচ্চশিক্ষা, স্কলারশীপ এবং অন্যান্য
http://on.fb.me/SingaporeSch

Higher Studies New Zealand
http://on.fb.me/NewZealandSch

What Australia has to offer
http://on.fb.me/AustraliaSch

Studying In Australia in self finance
http://goo.gl/FxnEu

Higher Studies in South Korea
http://on.fb.me/SouthKoreaSch

International Organizations Scholarships
http://on.fb.me/IntOrgSch

Korean Govt. Scholarship Program (NIIED-KGSP)
http://goo.gl/fuMtN

MALAYSIA
http://on.fb.me/MalaysiaSch

Various Govt. scholarships for Bangladeshis
http://on.fb.me/GovtSch

Scholarships in Japan
http://on.fb.me/JapanSch

Let's talk about China
http://bit.ly/ChinaSch

============
List of Documents: http://on.fb.me/docsList
Title: Seasonal diet changes can cause reproductive stress in primates
Post by: tamim_saif on November 29, 2012, 12:03:32 PM
(http://esciencenews.com/files/imagecache/image_medium/images/201211287143110.jpg)
When seasonal changes affect food availability, omnivores like blue monkeys adapt by changing their diets, but such nutritional changes may impact female reproduction, according to research published November 28 in the open access journal PLOS ONE by Steffen Foerster from Barnard College, and colleagues from Columbia University and the Smithsonian Institution. The authors found that levels of fecal glucocorticoids (fGC), a stress marker, increased when female monkeys shifted their diet towards lower quality fallback foods, whereas the levels decreased when the monkeys had access to preferred foods like insects, fruits and young leaves.

They also found that lactating females and those in the later stages of pregnancy showed greater increases in the stress marker than females who were not in these stages of reproduction. According to the authors, their results suggest that these seasonal changes in food availability may affect inter-birth intervals in these primates, and also affect the timing of infant independence from mothers.

Foerster adds, ""While it was interesting to find that even subtle changes in dietary composition may have strong effects on female reproductive decisions, it is equally noteworthy that social stress was almost entirely absent from blue monkey societies. Our study makes the point that integrating behavioral, ecological, and hormonal measures can reveal adaptive behavioral and reproductive strategies that would otherwise be difficult to discern."

Title: Mediation Combined With Art Therapy Can Change Your Brain and Lower Anxiety
Post by: tamim_saif on November 29, 2012, 12:20:06 PM
ScienceDaily (Nov, 2012) — Cancer and stress go hand-in-hand, and high stress levels can lead to poorer health outcomes in cancer patients. The Jefferson-Myrna Brind Center of Integrative Medicine combined creative art therapy with a Mindfulness-based Stress Reduction (MBSR) program for women with breast cancer and showed changes in brain activity associated with lower stress and anxiety after the eight-week program. Their new study appears in the December issue of the journal Stress and Health.
Title: Online Learning Strategies of Male and Female Students
Post by: tamim_saif on November 29, 2012, 12:39:40 PM
Source: ScienceDaily (Nov. 23, 2012)
 
Research Highlight -- Virtual learning via cyber space.
Researcher Rasaya Marimuthu and his team from Universiti Teknologi MARA conducted a study to determine the online learning strategies of male and female students in an English Language course.

Utilizing computers as a tool in education appears to be gaining momentum. There appears to be varying levels of interest in this method of online learning. This study attempted to investigate the relationship and differences (if any) of five variables, motivation, self monitoring, internet literacy, internet anxiety and concentration of students when engaging in online studying.

The study showed that there were no significant differences in the online learning experiences between male and female students. However, there existed correlations among some of the variables and also according to their gender. This study revealed that the respondents both male and female exhibited high levels of motivation, degree of self -monitoring, level of internet literacy and level of concentration when engaged in online learning.

As for the correlation effects of the five variables, the motivation in online learning had a significantly high positive correlation with self-monitoring in online learning. When comparison of the five variables according to gender was made, the results revealed that male and female students did not show any significant differences for the variables of motivation, self-monitoring, a higher level of internet literacy and also better levels of concentration when engaged in online learning.

The study appears to indicate that both male and female students in this study engaged in the same levels of motivation, self monitoring, internet literacy, internet anxiety and concentration in online studying. This study indicates that both male and female students are equally receptive to online learning.

This research was presented at the: 6th International Conference on University Teaching and Learning- Malaysia.
Title: Rose Rayhaan by Rotana (Rose Tower) Dubai -top 10 number 1
Post by: sahadat_185 on November 29, 2012, 02:56:39 PM

The Rose Rayhaan by Rotana (also known as Rose Tower) is a 333 m (1,093 ft), 72-storey hotel located on Sheikh Zayed Road in Dubai, United Arab Emirates. It is the world's tallest hotel. The tower was originally to be 380 m (1,250 ft), but design modification reduced it to 333 m (1,093 ft). Construction began in 2004 and was completed in 2007. On 24 October 2006, the building reached its full height with the addition of the spire. The hotel surpassed both the nearby 321 m (1,053 ft) Burj Al Arab, and the under construction 330 m (1,080 ft) Ryugyong Hotel in Pyongyang, North Korea. Although the building and its inner furnishings were in place in 2007, it did not open until December 23, 2009.

Rose Rayhaan Rotana is one of the first major hotel brands to open in Dubai as alcohol-free. The hotel has two restaurants and a 24-hour coffee shop. Bonyan International Investment Group is the developer and invested $180 million. The building was officially completed with 482 rooms, suites and penthouses. The Rose Tower officially opened on 23 December 2009.

Title: সংক্ষিপ্ত ভ্রমণে সাইকেল চালানো বা হাঁটাই 
Post by: Badshah Mamun on November 29, 2012, 06:46:26 PM
সংক্ষিপ্ত ভ্রমণে সাইকেলে করে কিংবা হেঁটে যাওয়াটাই হচ্ছে আদর্শ। ১৫-২০ মিনিটের পথ গাড়িতে না গিয়ে সাইকেল কিংবা হেঁটে যাওয়াটাই উত্তম বলে মত দিয়েছেন ব্রিটেনের বিশেষজ্ঞরা।
যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর হেলথ অ্যান্ড ক্লিনিক্যাল এক্সসিলেন্স (এনআইসিই) বলেছে, অতিমাত্রায় নিস্ক্রিয়তার কারণে যুক্তরাজ্যের নাগরিকদের স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়েছে। এই ‘নীরব বিপর্যয়ের’ হাত থেকে মুক্তি পেতে এর বিকল্প নেই।

(http://paimages.prothom-alo.com/resize/maxDim/340x1000/img/uploads/media/2012/11/28/2012-11-28-18-04-41-50b65239db76d-untitled-9.jpg)

স্থানীয় পর্যায়ে হাঁটা কিংবা সাইকেল চালানোকে আরও সহজতর করতে কাউন্সিলরদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে এনআইসিই। তারা বলেছে, কাউন্সিলরদের ভাড়ায় সাইকেল পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। এ ছাড়া গাড়িবিহীন বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ও সাইকেলের জন্য ভালো রুটেরও ব্যবস্থা করার পরামর্শ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।
এনআইসিই বলেছে, নিস্ক্রিয়তার মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় জীবনের জন্য তা হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ থেকে বাঁচতে শিক্ষার্থী ও কর্মজীবীদের হেঁটে কিংবা সাইকেলে করে বিদ্যালয়-অফিস-আদালতে যেতে উৎসাহিত করতে হবে।
সম্প্রতি একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ধূমপানের মতো সমান ক্ষতিকর নিস্ক্রিয়তাও। এ কারণেও মানুষের মৃত্যু হতে পারে। সর্বশেষ জরিপে দেখা গেছে, যুক্তরাজ্যের ১০ জন পুরুষের মধ্যে ছয়জন ও সাতজন নারীর শারীরিক সক্রিয়তা নেই। তবে শিশুদের ক্ষেত্রে পরিস্থিতি কিছুটা ভালো।
সাইকেল চালানো ও হাঁটার বিবেচনায় নেদারল্যান্ডস ও ডেনমার্কেরও পেছনে অবস্থান করছে যুক্তরাজ্য। দিনে গড়ে মাত্র ১১ মিনিট সাইক্লিং কিংবা হাঁটার পেছনে ব্যয় করে যুক্তরাজ্যের মানুষ।
এনআইসিইর বিশেষজ্ঞ মাইক কেলি বলেন, ‘জাতি হিসেবে আমরা শারীরিকভাবে যথেষ্ট সক্রিয় নই। এ কারণে বড় ধরনের স্বাস্থ্যঝুঁকি দেখা দিতে পারে।’

বিবিসি।


Source: http://prothom-alo.com/detail/date/2012-11-29/news/309186
Title: Apple new iMac computer.
Post by: Faysal230 on December 01, 2012, 09:52:28 AM
বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান অ্যাপল নতুন আইম্যাক কম্পিউটার বাজারে নিয়ে আসছে। খুবই পাতলা নতুন এ আইম্যাকটি শিগগিরই আগ্রহী ব্যবহারকারীরা পাবেন বলে আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে অ্যাপল। এর আগে যেখানে আইপ্যাড মিনি অবমুক্ত করার অনুষ্ঠান করেছে সেই একই স্থানেই অবমুক্ত হবে আইম্যাক। অ্যাপল কর্তৃপক্ষের ধারণা, নতুন আইম্যাক অবমুক্ত অনুষ্ঠানে এসে অতিথি এবং আগ্রহী ব্যবহারকারীরা দেখতে পাবেন নতুন আইম্যাকের দারুণ কিছু চমক। অবমুক্তের পরেই পাওয়া যাবে ২১.৫ ইঞ্চি মডেলের আইম্যাক এবং চলতি মাসেই পাওয়া যাবে ২৭ ইঞ্চি মডেলের আইম্যাক।
উন্নত ও দ্রুতগতির তৃতীয় প্রজন্মের কোয়াড কোর ইন্টেল কোর আই-৫ প্রসেসর, যা কোর আই-৭ পর্যন্ত উন্নীত করা যাবে, ৮ গিগাবাইট মেমোরি, ১ টেরাবাইট হার্ডডিস্ক ড্রাইভ, সর্বশেষ প্রযুক্তির এনভিডিয়া জিফোর্স গ্রাফিক্স প্রসেসর, যা কম্পিউটারকে শতকরা ৬০ ভাগ বেশি গতি দেবে। নতুন হার্ডড্রাইভেও থাকছে আধুনিক প্রযুক্তির সুবিধা।
প্রযুক্তি বাজারে অ্যাপলের আইম্যাক বেশ জনপ্রিয় অনেক আগ থেকেই। দারুণ সব সুবিধা আর বৈশিষ্ট্যের কারণে প্রযুক্তিপ্রেমীরা আইম্যাক ব্যবহার করতে বেশ স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। আর তাই নানা সুবিধার নতুন আইম্যাকও বাজারে আসার পর গ্রাহকদের আস্থা অর্জন করতে পারবে বলে ধারণা অ্যাপলের।


(http://paimages.prothom-alo.com/resize/maxDim/340x1000/img/uploads/media/2012/11/30/2012-11-30-16-53-19-50b8e47f13d23-14.jpg)


Ref: http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-01/news/309673
Title: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহা&
Post by: Shamsuddin on December 02, 2012, 11:36:09 AM
‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহায়ক’


ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট গ্রহণে বয়ষ্কদের আয়ু বাড়তে পারে।
Title: Re: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহ
Post by: tamim_saif on December 02, 2012, 11:47:52 AM
Please mention the sources of Vitamin D.
Title: Re: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহ
Post by: Shamsuddin on December 02, 2012, 12:14:50 PM
 Foods with Vitamin D

In the 1930s, a vitamin D deficiency disease called rickets was a major public health problem in the United States so a milk fortification program was implemented nearly eliminating this disorder.4,9 Currently, about 98% of the milk supply in the US is fortified with 400 International Units (IU) of vitamin D per quart.

Although milk is fortified with vitamin D, dairy products made from milk, such as cheese and ice creams, are generally not fortified with vitamin D.

There are only a few foods that are good sources of vitamin D,4 so vitamin D supplements are often recommended unless you are exposed to sunlight on your skin regularly. Suggested dietary sources of vitamin D are listed below.

Table 1: Selected food sources of vitamin D10-12

Food
International Units(IU)
per serving
Percent DV
DailyValue)*
Pure Cod liver oil, 1 Tablespoon (Note: most refined cod liver oils today have the vitamin D removed! Check your label to be certain.)   
1,360
340
Salmon, cooked, 3½ ounces   
360
90
Mackerel, cooked, 3½ ounces   
345
90
Tuna fish, canned in oil, 3 ounces   
200
50
Sardines, canned in oil, drained, 1¾ ounces   
250
70
Milk, nonfat, reduced fat, and whole, vitamin D fortified, 1 cup   
98
25
Margarine, fortified, 1 Tablespoon   
60
15
Pudding, prepared from mix and made with vitamin D fortified milk, ½ cup   
50
10
Ready-to-eat cereals fortified with 10% of the DV for vitamin D, ¾ cup to 1 cup servings (servings vary according to the brand)   
40
10
Egg, 1 whole (vitamin D is found in egg yolk)   
20
6
Liver, beef, cooked, 3½ ounces   
15
4
Cheese, Swiss, 1 ounce   
12
4

*DV = Daily Value. DVs are reference numbers developed by the Food and Drug Administration to help consumers determine if a food contains a lot or a little of a specific nutrient. The DV for vitamin D is 400 IU for adults.

Source: Internet
Title: 10 storied building in 48 hours
Post by: Md. Khairul Bashar on December 02, 2012, 05:09:22 PM
ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের মোহালি জেলায় মাত্র ৪৮ ঘন্টায় একটি ১০ তলা ভবন নির্মাণ করে দেশটিতে রেকর্ড গড়েছে একটি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। বৃহস্পতিবার বিকাল থেকে কাজ শুরু করে শনিবার বিকাল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভবন নির্মাণের কাজ চলে। ২৫ জন বিশেষজ্ঞ ও ২০০ শ্রমিক টানা কাজ করে এ সফলতা পেয়েছেন।
পূর্ব-নির্মিত স্টিলের কাঠামো ব্যবহার করে ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে।

কারখানায় নির্মিত ছাদ ও দেয়ালগুলো জোড়া দেয়ার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে তিনটি ক্রেন। কাঠামোগুলো তৈরি করতে তিন মাস সময় লেগেছে। ভবনটি পরিবেশ-বান্ধব বলে জানিয়েছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সিনার্জি গ্রুপ। এটি ভূমিকম্প প্রতিরোধী বলে স্বীকৃতি দিয়েছে ভারতের শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র।



সূত্রঃ http://www.dailyinqilab.com/details_news.php?id=92575&&%20page_id=%205
Title: ETE Facebook Alumni Association
Post by: arefin on December 02, 2012, 08:00:19 PM
https://www.facebook.com/groups/163847160420362/

All Ex- ETE Alumni are welcome here. Please join.
Title: Rise in sea water level, Polar ice
Post by: tariq on December 03, 2012, 11:49:18 AM
"The new estimate shows that polar melting contributed about one-fifth of the overall global sea level rise since 1992"
At lest finally we have a single estimation about the contribution of polar ice melting to the rise of sea water level. For
the last two decades there were a bunch of estimation provided by a number of research groups about the contribution
putting a serious confusion on the actual severity and the necessary steps to forestall the problem. Finally NASA and ESA
jointly have put some effort in this issue and taking all the the researcher groups under the same umbrella drew a single
conclusion. Certainly it is a matter of fact that it is not sufficient to have a single conclusion, as a group will ended up in a
single conclusion finally, the most important is the conclusion has to be justified. Fortunately the result provided by this team
is congruent with the available satellite data for the last 10 to 20 years. The outcome can be summarized as follows:
1. The largest ice sheet - that of East Antarctica - has gained mass over the study period of 1992-2011 as increased
    snowfall added to its volume.   
2. Greenland, West Antarctica and the Antarctic Peninsula were all found to be losing mass - and on a scale that more
    than compensates for East Antarctica's gain.
3. Polar ice sheets have overall contributed 11.1mm to sea level rise   

Now since the estimation is made, future prediction is worth coming. But we have to wait for some more time to get that
important prediction.[/pre]
Title: Pain killer increase pain
Post by: nmoon on December 03, 2012, 01:13:52 PM
ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১৯ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- অধিক পরিমাণে ব্যথানাশক ওষুধ সেবনের কারণে যুক্তরাজ্যে প্রায় ১০ লাখ মানুষ তীব্র মাথাব্যথায় ভুগছেন বলে চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ওষুধ সেবন করে অনেকে মাথাব্যথার একটি ‘দুষ্টচক্রে’ আটকা পড়েছেন। এর মধ্য দিয়ে তারা আরো বেশি মাথাব্যথায় ভুগছেন।

যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর হেলথ অ্যান্ড ক্লিনিক্যাল এক্সিলেন্সের (এনআইসিই) মাথাব্যথা চিকিৎসা সংক্রান্ত নীতিমালায় একথা বলা হয়েছে।

মাথাব্যথার চিকিৎসায় কিছু কিছু ক্ষেত্রে আকুপাংচারের আশ্রয় নেয়ারও সুপারিশ করা হয়েছে ওই নীতিমালায়।

ওষুধ সেবনে মাথাব্যাথা বাড়ে- মাইগ্রেন ও অন্য সব ধরনের মাথাব্যাথার ক্ষেত্রে একই ঘটনা ঘটে বলে তাতে বলা হয়।

এ বিষয়ে এনআইসিই প্যানেলের প্রধান ও ওয়ারউইক মেডিকেল স্কুলের অধ্যাপক মার্টিন আন্ডারউড বলেন, “মাথাব্যথার এই দুষ্টচক্র এমন যেখানে আপনার মাথাব্যথা হলে আপনি পেইনকিলার সেবন করেন, তাতে আপনার মাথাব্যথা আরো বাড়ে এবং তাতে আরো খারাপ অবস্থা হয়, আরো খারাপ এবং আরো খারাপ হয়।”

অবশ্য ব্যথানাশক ওষুধ মানুষের মস্তিষ্কের ওপর কী ধরনের প্রভাব ফেলে সে বিষয়ে চিকিৎসকরা নিশ্চিত হতে পারেননি বলে বিবিসির ওই প্রতিবেদনে বলা হয়।
Title: Sea of Blood
Post by: Md. Khairul Bashar on December 03, 2012, 01:48:14 PM
সেখানে হঠাৎ কেউ গেলে আঁতকে উঠবে। চকিতে মনে হবে যেন কোন হরর চলচ্চিত্রের দৃশ্যপটে এসে হাজির হয়েছে। গোটা সাগর টকটকে লাল। এ যেন রক্তর সাগর! সাগরের এই রক্ত রঙে ভয় পেয়ে বেড়াতে আসা অনেক পর্যটকও পালিয়ে গেছে। এমন দৃশ্যের অবতারণা অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি সাগর তীরকে ঘিরে।এসব সাগরের জল লাল হয়েছে আসলে ‘নকটিলুকা সায়েন্টিলান্স’ বা ‘সাগরের ঝিলিক’ বলে পরিচিতি শৈবালের মাত্রাতিরিক্ত আধিক্যের কারণে। সিডনিতে বিখ্যাত বন্ডি সৈকত, ক্লোভলি সৈকত ও গর্ডনস বে’তে গেলে সাগরের এই রক্তরং চোখে পড়বে।

সার্ফিংয়ের জন্য জনপ্রিয় এসব সৈকতে গিয়ে পর্যটকেরা আঁতকে ওঠেন। এক পর্যায়ে কর্তৃপক্ষ এসব সাগরে পর্যটকরে নামতে বারণ করে জল পরীক্ষা করতে পাঠায়।পরীক্ষায় ওই শৈবালের মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি শনাক্ত করা হয়। তবে এর মধ্যে এই শৈবাল বিবর্ণ হতে শুরু করেছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।লাল রঙের এ শৈবাল বিষাক্ত না হলে তা ত্বকের জন্য অস্বস্তিকর হতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। কারণ এতে খুব বেশি মাত্রার অ্যামোনিয়া রয়েছে।পত্রিকাটি জানায়, গরম ও আর্দ্র আবহাওয়া এ শৈবালের বিস্তৃতি ঘটাতে সহায়তা করে। সৈকতে পর্যটকদের সহায়তায় দায়িত্বপালনকারী (লাইফগার্ড) ব্রুস হপকিনস সাংবাদিকদের বলেন, শৈবালের কারণে সাগরজলে আঁশটে গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে। এই জলে নামলে ত্বকে অস্বস্তিকর অনুভূতি হতে পারে।



সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-03/news/310381
Title: Extended Sleep Reduces Pain Sensitivity
Post by: fernaz on December 03, 2012, 03:02:41 PM

A new study suggests that extending nightly sleep in mildly sleepy, healthy adults increases daytime alertness and reduces pain sensitivity.
The study, appearing in the December issue of the journal SLEEP, involved 18 healthy, pain-free, sleepy volunteers. They were randomly assigned to four nights of either maintaining their habitual sleep time or extending their sleep time by spending 10 hours in bed per night. Objective daytime sleepiness was measured using the multiple sleep latency test (MSLT), and pain sensitivity was assessed using a radiant heat stimulus. Results show that the extended sleep group slept 1.8 hours more per night than the habitual sleep group. This nightly increase in sleep time during the four experimental nights was correlated with increased daytime alertness, which was associated with less pain sensitivity. In the extended sleep group, the length of time before participants removed their finger from a radiant heat source increased by 25 percent, reflecting a reduction in pain sensitivity. The authors report that the magnitude of this increase in finger withdrawal latency is greater than the effect found in a previous study of 60 mg of codeine. According to that, this is the first study to show that extended sleep in mildly, chronically sleep deprived volunteers reduces their pain sensitivity. The results, combined with data from previous research, suggest that increased pain sensitivity in sleepy individuals is the result of their underlying sleepiness.

Title: Step-By-Step Social Media Marketing Strategy Every Website Owner Needs To Know
Post by: Muhammad Siddiqur Rahman on December 03, 2012, 04:01:11 PM
[youtube]http://www.youtube.com/watch?v=vGdKU_4Utac[/youtube]
Title: How to setup .NET Framework 3.5 in Windows 8
Post by: mahbub-web on December 03, 2012, 04:45:16 PM
How to setup .NET Framework 3.5 in Windows 8

উইন্ডোজ ৮ ইনস্টল করার পরে,কোনও সফটওয়্যার ইনস্টল করতে গেলে প্রত্যেকেই একটা সমস্যাতে পড়বেন, সেটা হলো সফটওয়্যার ইনস্টল করতে গেলেই .NET Framework 3.5 ইনস্টল করতে বলে, এছাড়া সফটওয়্যারগুলো ইনস্টল হবে না ।

(http://itunesbd.files.wordpress.com/2012/11/ic556828.png)

আমি আজকে, খুব সহজেই উইন্ডোজ ৮ এ কিভাবে .NET Framework 3.5 অফলাইনে ইনস্টল করবেন সে বিষয়ে আলোচনা করবো । চলুন শুরু করা যাক । উইন্ডোজ ৮ এর ইনস্টলেসন মিডিয়া (উইন্ডোজ ৮ ডিভিডি/ বুটেবল পেনড্রাইভ) পিসিতে প্রবেশ করান । এবার cmd.exe (Command Prompt) কে স্টার্ট মেনুতে সার্চ করে Run As Administrator করুন ।

(http://itunesbd.files.wordpress.com/2012/11/untitled.jpg)

Command Prompt এ নিচের কমান্ড টি পেস্ট করে Enter কী চাপুন : dism.exe /online /enable-feature /featurename:NetFX3 /Source:G:\sources\sxs /LimitAccess

এখানে উল্লেখ্য যে G:\ হচ্ছে ইনস্টলেসন মিডিয়া (উইন্ডোজ ৮ ডিভিডি/ বুটেবল পেনড্রাইভ) এর ড্রইভ Letter । আপনার ইনস্টলেসন মিডিয়া এর ড্রইভ Letter যদি অন্য হয় ( )তাহলে কমান্ডে শুধুমাত্র G:\ এর পরিবর্তে ইনস্টলেসন মিডিয়া এর ড্রইভ Letter টি বসাতে হবে । যেমন ধরুন আপনার ইনস্টলেসন মিডিয়া এর ড্রইভ Letter যদি H:\ হয়, তাহলে কমান্ড টি হবে
dism.exe /online /enable-feature /featurename:NetFX3 /Source:H:\sources\sxs /LimitAccess

Command Prompt এ কাজ চলতে থাকবে । কাজ শেষ হলে “The operation completed successfully” দেখাবে । এইবার পিসি রিস্টার্ট দিন । ব্যাস কাজ শেষ । এবার আপনি আপনার পছন্দের সফটওয়্যারগুলো আরামসে ইনস্টল করতে পারবেন ।



ref: http://bdrong.com/sufian-ahmed/tips-and-tricks/3976
Title: Seminar on 'Controlling Computer Thru Generation'@DIU
Post by: Faysal230 on December 04, 2012, 11:13:21 AM
সম্প্রতি ঢাকার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে (ডিআইইউ) অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘কন্ট্রোলিং কম্পিউটার থ্রো পাওয়ার জেনারেশন’ শীর্ষক কারিগরি সেমিনার। বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিকস প্রকৌশল (ইইই) বিভাগের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত সেমিনারে বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আমিনুল ইসলাম, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক গোলাম মাওলা চৌধুরী, তড়িৎ ও টেলিযোগাযোগ প্রকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মুহাম্মদ ফয়জুর রহমান, ইইই বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এম সামসুল আলমসহ অনেকে।
সেমিনারে মূল প্রবন্ধে কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার ব্যবহার করে একটি গ্যাস এনজাইন জেনারেটর তৈরির কথা বলা হয়। এই বিষয়গুলো তুলে ধরেন জাপানের নাগোয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী তাকায়ওশি সুজুকি।



Ref:  http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-04/news/310487
Title: Share box is in your website
Post by: mahbub-web on December 04, 2012, 11:52:16 AM
ভাসমান শেয়ার বক্স তৈরি করুন আপনার সাইটের জন্য (ফেসবুক লাইক, টুঁইটার ও গুগল+ ১)

(http://tutorialfor.me/wp-content/uploads/2012/07/social-floating-share.png)

আমাদের এই (TutorialFor.Me) সাইটে শেয়ার করার জন্য বাম দিকে আমারা কয়েকটা শেয়ার বাটন দেখতে পায় যা ব্যবহারযোগ্য ও সুবিধা জনক।  অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করেছেন যে এই শেয়ার বাটন গুলো কিভাবে করেছেন বা কোন প্লাগিন আছে? ইত্যাদি ইত্যাদি। তাই আজকে আমি সেই সকল গ্রাহকদের জন্য এই টিউটোরিয়াল লেখা শুরু করলাম। যাতে করে সবাই নিজেদের ওয়ার্ডপ্রেস সাইটে (অন্যান্য সাইটেও) ব্যবহার করতে পারেন।

শেয়ার বক্স-এ কি কি বাটন যুক্ত করবো?

শেয়ার বাটন এ আমারা চাইলে অনেক বাটন যুক্ত করতে পারি কিন্তু সেক্ষেত্রে দেখা যাবে সাইটের শেয়ার বক্সটি অনেক বড় ও স্ক্রিপ্ট গুলো লোড হতে বেশ সময় নিবে, সেই কারনেই সাইটও দেরিতে খুলবে। তাই আমারা বেশ কয়েকটা জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এর শেয়ার বাটন গুলো তৈরি করবো। যেমনঃ ফেসবুক, গুগল+ ও টুঁইটার।

শেয়ারিং কোড গুলো সংগ্রহঃ

ফেসবুক লাইক কোড
গুগল প্লাস +১ কোড
টুঁইটার টুইট কোড
উপরের লিংক গুলো থেকে আপনাকে শেয়ার বাটন তৈরি করার জন্য সকল কোড গুলো সংগ্রহ করতে হবে। তবে আমি সমস্যা নাই আমি নিচে আপনাদের জন্য কোডিং করেই দিয়েছি তাই সংগ্রহ না করলেও হবে, যদি আপনি উন্নত শেয়ার বাটন তৈরি করার চেস্টা করেন তাহলে উপরের লিংক গুলো আপনার জন্য প্রয়োজনীয়।

ভাসমান শেয়ার কোড লিখুনঃ

আমি উপরেই বলছি আমারা ৩টা (ফেসবুক, গুগল+ ও টুঁইটার) সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থার শেয়ার বাটন গুলো আমাদের সাইটে ভাসমান আকারে যুক্ত করবো। তাই আমি সেই ভাবে ভাসমান শেয়ার বক্স এর জন্য নিচের কোড গুলো লিখেছি।

হেডারে জাভাস্ক্রিপ্ট যুক্তঃ
আপনার সাইটের থিম ফোল্ডার এর মধ্যে header.php ফাইল ওপেন করুন এবং সেই ফাইলের মাঝে খুজুন


Code: [Select]
</head>
এবং এর উপরে (আগে) নিচের কোডগুলো বসিয়ে দিন।

Code: [Select]
<script type="text/javascript" src="https://apis.google.com/js/plusone.js"></script><script type="text/javascript" src="http://platform.twitter.com/widgets.js"></script>
ভাসমান শেয়ার বক্স এর কোডঃ
আপনার থিম ফোল্ডার এর মধ্যে single.php ওপেন করুন এবং সেখানে


Code: [Select]
<?php the_content(); ?>
এই কোডটি খুজে বের করুন এবং তার পরে নিচের কোড গুলো কপি করে বসিয়ে দিন অথবা বসিয়ে দিন।

Code: [Select]
<!-- Float Sharing Box Starts -->
<div class='float-share'>

   <div class='fbfloat-share float-widget'>
    <iframe src="//www.facebook.com/plugins/like.php?href=<?php echo urlencode(get_permalink($post->ID)); ?>&send=false&layout=box_count&width=46&show_faces=true&action=like&colorscheme=light&font=arial&height=65"
scrolling="no" frameborder="0" style="border:none; overflow:hidden; width:46px; height:65px;" allowTransparency="true"></iframe>
   </div>

   <div class='gplfloat-share float-widget'>
<g:plusone size="tall" href="<?php the_permalink(); ?>"></g:plusone>
   </div>

   <div class='twfloat-share float-widget'>
    <a href="http://twitter.com/share" class="twitter-share-button" data-text='<?php the_permalink(); ?>' data-via="TutorialFor.Me" data-count="vertical" data-related="TutorialFor.Me:Tutorial Site">Tweet</a>
   </div>

</div>
<!-- Float Sharing Box End -->

স্টাইল করতে সিএসএস এর ব্যবহার

উপরের কাজ গুলো ধাপ গুলো ঠিক ভাবে অনুসরণ করতে পারলে আপনি আপনার সাইটের যেকোনো একটি পোস্ট ওপেন করে দেখুন দেখবেন আপনার পোস্ট এর সকল লেখার নিচে শেয়ার বাটন গুলো প্রদর্শিত হচ্ছে তবে এলো-মেলো ভাবে। তাই সেগুলো ঠিক করার জন্য এবার আমরা একটু সিএসএস এর ব্যবহার করবো। আমি নিচে সিএসএস কোড গুলো দিয়ে দিলাম সেই কোড গুলো কপি করে আপনার থিমের style.css ফাইলে যুক্ত করে দিন। এবং আপনার সাইট পুনরায় লোড করুন।


Code: [Select]
/* Floating Share Widget */
.float-share {
width : 80px;
padding : 10px 0;
padding-bottom : 0;
background : #ffffff;
border : 1px solid #d2d2d2;
border-radius : 8px;
text-align : center;
position : fixed;
top : 229px;
left : auto;
z-index : 15;
margin: 0 0px 0 -135px;
}
.float-widget {
margin-bottom : 10px;
}

ব্যাস হয়ে গেলো আপনার সাইটেও একটি ভাসমান শেয়ার ব্যবস্থা। আশা করি এই টিউটোরিয়াল টি দেখে আপনারা সহজ ভাবে আপনাদের সাইটে ভাসমান শেয়ার ব্যবস্থা যুক্ত করতে পারবেন।
Title: Vision of Man & Woman
Post by: Md. Khairul Bashar on December 04, 2012, 01:46:30 PM
নারী ও পুরুষের চোখের দৃষ্টি নিয়ে আগেও অনেক গবেষণা হয়েছে। ওই সব গবেষণায় নির্দিষ্ট চিত্র ব্যবহার করা হয়েছিল। এবার ব্যবহার করা হয়েছে কিছুটা ইঙ্গিতপূর্ণ ছবি। গবেষণায় দেখা গেছে, উভয়ের দৃষ্টিতে ভিন্নতা রয়েছে।যুক্তরাজ্যের ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক এই গবেষণা চালান। এটি বিজ্ঞান সাময়িকী প্লস ওয়ান-এ প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকেরা ১৯ থেকে ৪৭ বছর বয়স্ক ২৬ জন নারী ও ২৬ জন পুরুষের ওপর গবেষণা করেন। গবেষকেরা চলচ্চিত্র ও চিত্রকলা থেকে কিছু ছবি নারী-পুরুষকে আলাদাভাবে দেখতে দেন। কিছু ছবি নেওয়া হয় সাউন্ড অব মিউজিক, ইনসাইড ম্যান, ব্লু প্লানেট ইত্যাদি চলচ্চিত্র থেকে। আর নেওয়া হয় আঁকা কিছু ছবি। গবেষকেরা ছবির এক থেকে পাঁচটি স্থানকে গুরুত্ব দেন। এসব স্থানের মধ্যে রয়েছে: মুখমণ্ডল, চোখ, হাত ইত্যাদি।এখানেই দেখা গেল, নারী-পুরুষের দৃষ্টি এক জায়গায় পড়ছে না। নারীরা ছবির নিচের অংশের দিকে দৃষ্টি দিচ্ছেন। অন্যদিকে পুরুষেরা দিচ্ছেন ওপরের অংশে।

গবেষক দলের অন্যতম সদস্য ফেলিক্স মার্সার মস বলেন, ইউরোপের সংস্কৃতিতে সরাসরি চোখের দিকে তাকানোর অর্থ হুমকি বোঝায়। তাই হয়তো নারীরা সরাসরি চোখের দিকে তাকানোর ঝুঁকি নেননি, বরং তাঁরা পুরুষের ছবির নিচের অংশে তাকিয়েছিলেন।গবেষক মার্সারের মতে, এই গবেষণার ফলাফল দৃষ্টির পরিবর্তন নিয়ে ভবিষ্যতে আরও ভালো গবেষণায় সহায়তা করবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের যাঁরা চোখের ট্র্যাকিংয়ের কাজ করেন, তাঁরা এই নারী-পুরুষের দৃষ্টির পার্থক্য মাথায় রাখলে কাজটি সহজেই করতে পারবেন।


সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-03/news/310241
Title: No more devate regarding Goal
Post by: Md. Khairul Bashar on December 04, 2012, 03:20:40 PM
ইন্টারনেটে ‘রাশিয়ান লাইন্সম্যান’ লিখে সার্চ দিলে মনে হতে পারে রাশিয়াতে বুঝি শুধু একজনই লাইন্সম্যান। গুগলের প্রথম কয়েক পাতায় শুধু তোফিক বাহরামভের নাম। ১৯৬৬ বিশ্বকাপ ফুটবল ফাইনালে দেওয়া একটি মাত্র সিদ্ধান্তই তাকে দুনিয়াজুড়ে পরিচিতি দিয়েছে। কিন্তু বাহরামভের ওই সিদ্ধান্তটি ছিল ভুল। ওয়েম্বলিতে ইংল্যান্ড-পশ্চিম জার্মানি ফাইনালের অতিরিক্ত সময়ে ইংলিশ স্ট্রাইকার জিওফ হার্স্টের একটি শট ক্রসবারে লেগে গোললাইনে পড়ে বেরিয়ে আসে। বিভ্রান্ত সুইস রেফারি গটফ্রিড ডিনস্ট বল গোললাইন পেরিয়েছে কি না, জানতে চাইলেন বাহরামভের কাছে। বাহরামভ হ্যাঁ বলাতেই গোলের সংকেত দিলেন রেফারি। ওই গোলটাই গড়ে দিল ব্যবধান। ২-২ সমতায় থাকা ম্যাচে ৩-২ গোলে এগিয়ে গেল ইংল্যান্ড। পরে আরেকটি গোল করে বিশ্বকাপের ফাইনালের একমাত্র হ্যাটট্রিকটি পেয়ে যান হার্স্ট। আর ইংল্যান্ডও পেয়ে যায় আরাধ্য বিশ্বকাপটা।

তখন থেকেই যতবার গোলটি দেখানো হয়েছে টেলিভিশনে জার্মানরা অক্ষম ক্রোধে কেঁপেছে আর ইংলিশরা মেতেছে উল্লাসে। ৪৪ বছর পর দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে ওয়েম্বলির সেই ভূতটা যেন ফিরে আসে আরেকটি জার্মানি-ইংল্যান্ড ম্যাচে। তবে এবার ঘটল উল্টো ঘটনা। যার শিকার এবার ইংল্যান্ড। ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের শট ক্রসবারে লেগে গোললাইনের ভেতরে পড়ে বেরিয়ে আসে। রেফারি এবার গোল দিলেন না। আর ম্যাচটা ইংল্যান্ড হেরে গেলে ৪-১ গোলে।আলোচিত এই দুই ঘটনার মাঝে অনেকবারই দাবি উঠেছে বল গোললাইন পেরিয়েছে কি না, সেটা বোঝার জন্য প্রযুক্তির আশ্রয় নেওয়া হোক। কিন্তু বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা বরাবরই প্রশ্নটা এড়িয়ে গেছে। ২০১০ বিশ্বকাপের পর অবশ্য নড়েচড়ে বসে সংস্থাটি। অনেক দিন না করার পর অবশেষে তারা সিদ্ধান্ত নেয় আধুনিক প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়ার। গত দুই বছরে অনেক যাচাই-বাছাই করার পর আপাতত দুটি প্রযুক্তি বেছে নিয়েছে ফিফা। যাদের চূড়ান্ত পরীক্ষা আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে জাপানে শুরু হতে যাওয়া ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপে। ফিফার লক্ষ্য আগামী ব্রাজিল বিশ্বকাপের জন্য একটি নির্ভুল প্রযুক্তি বেছে নেওয়া।আর কাকতালীয়ভাবে এখানেও মুখোমুখি ইংরেজ ও জার্মানরা। জার্মানদের গোলরেফ ও ইংরেজদের হক-আই প্রযুক্তি লড়ছে নিজেকে বেশি নিখুঁত প্রমাণ করার জন্য। চৌম্বক তড়িৎক্ষেত্র ব্যবহার করা গোলরেফ প্রযুক্তি স্থাপন করা হবে ইয়োকোহামা স্টেডিয়ামে। অন্যদিকে ক্রিকেট ও টেনিসে ব্যবহার হওয়া ক্যামেরানির্ভর হক-আই প্রযুক্তি স্থাপন করা হবে টয়োটা স্টেডিয়ামে। গোলরেফের স্রষ্টা জার্মানির গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফ্রনহফার ইনস্টিটিউট অব ইন্টিগ্রেটেড সার্কিট এবং হক-আই তৈরি করেছে ব্রিটেনের হক-আই ইনোভেশন।

হক-আই কাজ করবে ছয় থেকে আটটি ক্যামেরা নিয়ে। স্টেডিয়ামের ছাদে বসানো ক্যামেরাগুলোর সার্বক্ষণিক দৃষ্টি থাকবে বলের দিকে এবং বলের সঠিক অবস্থানের ত্রিমাত্রিক ছবি দেখাবে। টেনিসের লাইনকল ও ক্রিকেটে এলবিডব্লুর সিদ্ধান্তে অনেক দিন ধরেই ব্যবহূত হচ্ছে এটি। গোলরেফের কাজের পদ্ধতিটা পুরোপুরিই অন্যরকম। এটি পুরোপুরিই একটি তড়িৎ-চুম্বকীয় পদ্ধতি। গোল পোস্ট ও ম্যাচ বলের ভেতরে সেন্সর বসানো থাকবে। বল পুরোপুরি গোললাইন অতিক্রম করেছে কি না, সেটা চুম্বকক্ষেত্রের সামান্য হেরফের থেকেই বোঝা যাবে। আর দুই ক্ষেত্রেই রেফারির কবজিতে বিশেষ একটি ঘড়ি থাকবে যেটি মুহূর্তেই রেফারিকে সংকেত দেবে গোল হয়েছে কি না। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ক্রিকেট ও টেনিসের মতো মোটেই সময় নষ্ট হবে না।ক্লাব বিশ্বকাপে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর্যালোচনা হবে আগামী জানুয়ারিতে। এরপর ফিফা কনফেডারেশনস কাপে পরীক্ষা করা হবে তৃতীয় আরেকটি প্রযুক্তির। এরপরই নেওয়া হবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। তবে খুবই ব্যয়বহুল হওয়ায় ফিফা ফুটবল লিগগুলোতে এখনই এটাকে বাধ্যতামূলক করছে না।


সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-03/news/310239
Title: How to be a great manager through strong leadrship
Post by: librarian on December 04, 2012, 03:34:00 PM
The following points help us to be a great leader through strong leadership:


1.  Develop trust and credibility.  When people trust we, they will be more inclined to follow us.  If they follow us, and we have all the pieces of the puzzle in place as described throughout this course, we will succeed.  A leader builds trust by considering the “good of all” when making decisions. Leaders do not abuse their power, but build trust by using it properly.  Trust fosters collaboration, which contributes to openly sharing information, which then creates a solid team who supports each other.  Trust is based on the respect and expectations of a leader who cares and acts with compassion in a most positive way.  With trust there is: 
Honesty, Integrity, Compassion, Fairness and Good relationships

 Incorporating these five traits will help guide us on the right path to strong leadership.

2. Share the vision with absolute clarity.  Leaders need to share the vision of what they want their department to achieve.  For example, a leader might share a vision like, “We will be a world class customer service organization that provides the benchmark for customer satisfaction.”  To get others to see and understand our vision, we need to motivate and inspire with the same enthusiasm and positivity we have inside us.
   
It is vital, however, that our team understands the vision, and is 100% clear on the objectives.  We are striving for a better and secure future, while eliminating the common work related fears.  People with a shared vision are more productive and have a greater sense of achievement.  Inspire them to follow the processes and procedures we will put in place to achieve the vision.
 
We also need to listen to what they are saying.  Doing all the talking does not let them participate in the vision quest with their ideas. 
 
A way to see the dream come true is by charting successes, as well as failures.  If the employees always know where they stand, they will know what part they played in achieving the vision.

3.  Be there to help them succeed - Coaching, mentoring, communicating, and listening.  Great interpersonal skills are vital for a successful leader. We don’t lead by hiding behind our desk.  Be out there and find the strengths and talents of our employees, and place them where they can shine.  They need to know how their strengths serve the objectives.  Show them the respect they deserve, and we have their interests at heart.
   
The bottom line is that they need to know that we will be there to help them succeed.  We can do this by:
 

  * Coaching.  Try and help them improve their skills to do their job better.  Give them feedback on their performance with
      observations and give good advice.  Use specific statements rather than general comments, whether good or bad.

   * Mentoring.  Help them understand what we are all about, guide them for a better chance of promotion, and have them
      learn about other aspects and functions of the business.

    *Communicating.  Clearly share our visions and goals, encourage individuals and groups, praise when praise is due, and
      take the time for one-on-one meetings.

   * Listening.  Let them share ideas, concerns, and know we are approachable and caring. 

 The most important aspect here is that we are always looking at ways to help develop our employees’ unique skills, both individually and as a group, for a better future including possible growth in the company.  This is a win for the company as well.  The company will gain more productive employees, not to mention us will look good in upper managements eyes.

4.  Make the decisions and be held accountable. With the skills developed throughout this course, we will mostly make the right decisions and guide our department into the right direction.  We need to:

    Sift the data for facts and relevance.
    Look closely at the issue at hand while never losing sight of the big picture.

    Talk to subject experts if needed.

    Don’t make a decision too quickly unless necessary.

    Think about the cost-benefit for both short-term and long-term.

    Once a decision is made, do not be wish-washy or unsure about ourself.  You will be seen as a person who can be easily
    persuaded with little confidence.

 We as a leader are expected to take some chances and we might make some risky decisions.  In saying that, as people expect to be held accountable in their job performance, they also expect us to be held accountable as their leader.  If we fail or deny any wrong doing on our part, or place blame on someone else, you will lose credibility and not be seen as an effective leader.

We also need to know when it is better to follow, rather than lead, by trusting our employees’ suggestions.  Leaders realize they can’t know all the answers, and earn respect when they seek advice of others when needed.   
If we make a decision that is obviously seen as showing favoritism, or just a lack of judgment, by promoting someone who has bad work ethics, no respect, or below average performance, we will not only lose respect, but also hurt team morale.
 
Being held accountable is also a positive thing, as we want to be known for the good things that we do.  The same goes for our employees as it makes them feel important and appreciated.  We do, however, need to allow people to sometimes fail or make mistakes during the process of achieving difficult goals.  We do, however, also need to confront them.  By using our management and leadership skills, people will admit their mistakes and accept accountability. Our skills as leader will also help and coach them to improve.  If we do not already have the nerve and confidence to confront people, we will eventually, as the contents of this course should lift our confidence and ego immensely.
 
Make sure our decisions are always ethically sound.  Do not ask or expect our team to get the results unethically or use a “no matter what it takes” approach.

5.  Keep it all under control and headed in the right direction.  The objective of every leader should come with the mindset of striving for “mission accomplished.”  We, as leader and manager, need to focus on what’s most important related to the vision and goals of the organization.  You need to eliminate chaos and be known as a person with authority who can make the right decisions.  We might have 5 projects going on at once, but focusing more on the least important when the most important is in need of help will destroy our vision and miss our goals.  Make sure we get our team to focus on the most important and critical tasks to achieve the goals related to our vision.  By delegating tasks to the right people, fulfillment of the vision will become more likely.
 
Everyone needs to have the same focus and direction we have.  A sense of community within the team, with a common goal, is key.  If we waver and change our mind and direction continually, we will lose trust.  Consistency is key to maintaining control and keep things going in the right direction.
 Above “five key points” are the core competencies to strong leadership. 
Title: কৃত্রিম মস্তিষ্ক!
Post by: Md. Khairul Bashar on December 04, 2012, 05:08:41 PM
সম্প্রতি কানাডার ওয়াটারলু বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নায়ুবিদ ও সফটওয়্যার প্রকৌশলীরা মিলে কৃত্রিম মস্তিষ্ক তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন। গবেষকেদের দাবি, মানুষের মস্তিষ্কের মতোই জটিল সমস্ত কাজ করতে পারবে এ কৃত্রিম মস্তিষ্ক। এক খবরে এ তথ্য জানিয়েছে নিউ ইয়র্ক টাইমস।গবেষকেরা এ কৃত্রিম মস্তিষ্কটির নাম দিয়েছেন সিমানটিক পয়েন্টার আর্কিটেকচার ইউনিফাইড নেটওয়ার্ক বা সংক্ষেপে ‘স্পুন’। এ মস্তিষ্কটিকে একটি সুপার কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। কৃত্রিম এ মস্তিষ্ক মানুষের মস্তিষ্কের মতোই অনেক বিষয় শিখতে পারে।

গবেষকেরা মস্তিষ্কের সঙ্গে ডিজিটাল চোখ ও রোবট বাহু যুক্ত করেছেন। চোখে দেখে মস্তিষ্কের যে অনুভূতি জাগবে রোবোটিক হাত ব্যবহার করে তা আঁঁকতে পারে এ রোবটটি। গবেষকেদের দাবি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন এ রোবটটি সাধারণ বুদ্ধিমত্তার পরীক্ষায় উতরে যেতে পারবে।গবেষকেরা জানিয়েছেন, মস্তিষ্কের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে ২৫ লাখ কৃত্রিম নিউরন বা স্নায়ু, যা আটটি আলাদা আলাদা কাজ করতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে ছবি আঁঁকা, গুণতে পারে বা প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার মতো বিষয়টি।



সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-04/news/310648

Title: ধূমপান আইন সংশোধনের দাবি
Post by: Shamsuddin on December 04, 2012, 07:01:27 PM
ধূমপান আইন সংশোধনের দাবি





বাংলাদেশের তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের উপর একটি সমীক্ষার প্রাথমিক প্রতিবেদন উপস্থাপনের পর বার কাউন্সিলের পক্ষে এ দাবি জানান বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার।

বার কাউন্সিলের মানবাধিকার ও আইনগত সহায়তা কমিটি পরিচালিত এই সমীক্ষায় নেতৃত্ব দেন আইনজীবী শাহদীন মালিক। এতে সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্টের ক্যাম্পেইন ফর ট্যোবাকো ফ্রি কিডস।

আইন সংশোধন ও বাস্তাবায়ন পথ, এই দুইভাগে সমীক্ষাটি করা হয়।

ধূমপান ও তামাক পণ্যের ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০০৫- এ অনেক ফাঁক রয়েছে দাবি করে সমীক্ষার প্রাথমিক প্রতিবেদনে বলা হয়, এই আইনে তামাক, তামাক পণ্য, পাবলিক প্লেস, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসব শব্দকে সংকীর্ণ দৃষ্টিভঙ্গিতে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়, ধূমপান ও তামাক পণ্যের ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০০৫ এর বর্তমান অবস্থাটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এফসিটিসি গাইডলাইনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। ওই নির্দেশিকা বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাগরিকদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই আইন ও নীতি সংশোধন করতে হবে।

বার কাউন্সিল সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বার কাউন্সিলের মানবাধিকার ও আইনগত সহায়তা কমিটির বার কাউন্সিলের মানবাধিকার ও আইনগত সহায়তা কমিটির চেয়ারম্যান জেড আই খান পান্না, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি জগলুল হায়দার আফ্রিক প্রমুখ।



Source: Internet
Title: Smoking and Die
Post by: Shamsuddin on December 04, 2012, 07:11:25 PM
'ধূমপানের কারণে এ বছর মৃত্যুবরণ করবে ৬০ লাখ মানুষ'



লন্ডন, জুন ০১ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- ধূমপানের কারণে চলতি বছর বিশ্বব্যাপী প্রায় ৬০ লাখ মানুষ মৃত্যুবরণ করবে। আর এরমধ্যে পরোক্ষ ধূমপানের কারণে মারা যাবে প্রায় ৬ লাখ মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে।

এত মানুষের মৃত্যুর জন্য ডব্লিউএইচও বিশ্বের সরকারগুলোকে দায়ী করেছে। সংস্থাটি দাবি করছে, কোনো দেশের সরকারই জনগণকে ধূমপানবিমুখ করতে যথেষ্ট পদক্ষেপ নেয়নি। একই সাথে পরোক্ষ ধূমপান ঠেকাতেও কর্তৃপক্ষ যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করেনি।

যদিও ধূমপান শুরু করার অনেক বছর পর এর স্বাস্থ্যগত ক্ষতির দিক প্রকাশ পেতে থাকে তারপরও ধূমপানজনিত রোগ ও এরফলে মৃত্যু এখন মহামারীর রূপ নিয়েছে বলে জানিয়েছে ডব্লিউএইচও।

২০৩০ সাল নাগাদ ধূমপানের ফলে মৃতের সংখ্যা প্রতি বছরে ৮০ লাখে গিয়ে দাঁড়াবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

জাতিসংঘের এই সংস্থাটি বিশ্বের আরও বেশি সংখ্যক দেশের সরকারকে এর তামাক নিয়ন্ত্রণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করে তা প্রয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছে।

এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৭২টি দেশ ও ইউরোপিয় ইউনিয়ন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার 'ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অব টোবাকো কন্ট্রোল' (এফসিটিসি) তে স্বাক্ষর করেছে।

ডব্লিউএইচও সতর্ক করে বলেছে, বর্তমান অবস্থা চলতে থাকলে চলতি একবিংশ শতাব্দীতে তামাকের কারণে ১শ' কোটি মানুষের মৃত্যু হতে পারে যা বিগত শতাব্দীর দশগুণ।

বিংশ শতাব্দীতে তামাকজনিত কারণে দশ কোটি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

ডব্লিউএইচও ধূমপান নিরোধে কয়েকটি রাষ্ট্রের গৃহীত পদক্ষেপে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে। এরমধ্যে উগান্ডা নিয়ম করেছে তামাকজাত দ্রব্যাদির প্যাকেটের আশিভাগ জুড়ে স্বাস্থ্য সতর্কতা নির্দেশ করার জন্য বরাদ্দ রাখতে হবে।

গত মাসে চীন জনসমাগমের স্থানগুলো যেমন হোটেল, রেস্তোরাঁ, বার ইত্যাদিতে ধূমপান নিষিদ্ধ করেছে।

এ পদক্ষেপগুলোকে উৎসাহজনক বললেও ডব্লিউএইচও-এর মহাপরিচালক মার্গারেট চ্যান এগুলোকে যথেষ্ট বলে স্বীকৃতি দেননি। তিনি বলেছেন, "রাষ্ট্রগুলোকে ধূমপান নিরোধে প্রয়োজনীয় আইন জারি করতে হবে এবং সেগুলো কঠোরভাবে প্রয়োগ করতে হবে"।

ডব্লিউএইচও ধূমপানকে 'সভ্যতার ইতিহাসে জনস্বাস্থ্যের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি' বলে চিহ্নিত করেছে।

ধূমপানের কারণে ফুসফুসের ক্যান্সার হয়, এছাড়া অন্যান্য দীর্ঘমেয়াদী শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত রোগেরও কারণ ঘটায় ধূমপান। বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী রোগ রক্তসংবহনজনিত রোগ (স্ট্রোক) ও হৃদরোগের প্রধান কারণ ধূমপান।

প্রসঙ্গত, ৩১ মে ছিল বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস।

Source Internet
Title: Effect of Smoking
Post by: Shamsuddin on December 04, 2012, 08:03:48 PM
ধূমপান: মিনিটেই দেহের ক্ষতি


 ধূমপানের কারণে কয়েক বছর নয়, বরং কয়েক মিনিটেই শরীরের ক্ষতি হয়। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকরা এমনটাই বলেছেন।

'কেমিক্যাল রিসার্চ ইন টক্সিকোলোজি'তে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ধূমপানের পর শরীরে 'পলিসাইক্লিক অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন' (পিএএইচ)-এর মাত্রা বেড়ে যায়।

শরীরে পিএএইচ অন্য একটি রাসায়নিক উপাদানে রূপান্তরিত হয় যা ডিএনএ'র ক্ষতি করে এবং ক্যান্সার সৃষ্টির জন্য দায়ী।

এ পুরো প্রক্রিয়াটি সংঘটিত হতে ১৫ থেকে ৩০ মিনিট সময় লাগে এবং প্রথম সিগারেট খাওয়ার পরেই এটা ঘটতে শুরু করে বলে গবেষণায় বলা হয়েছে।

'ইউনিভার্সিটি অব মিনেসোটা'র অধ্যাপক স্টিফেন হেচ বলেন, "এ গবেষণাটি অনন্য। খাবার ও বায়ু দুষণ ছাড়া কেবল ধূমপানের ওপর ভিত্তি করেই সিগারেট খাওয়ার পর মানুষের শরীরে পিএএইচ-এর যে রাসায়নিক রূপান্তর ঘটে তা প্রথমবারের মতো দেখানো হয়েছে এখানে।"

এ গবেষণাকে ধূপমান শুরু করতে আগ্রহী মানুষের জন্য সতর্কবার্তা বলে অভিহিত করেছেন ধূমপান বিরোধী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন 'অ্যাশ'র নীতি ও গবেষণা বিষয়ক পরিচালক মার্টিন ডকরেল।


Source: Internet
Title: Indirect smoking and percentise of Die
Post by: Shamsuddin on December 05, 2012, 10:24:41 AM
Indirect smoking and percentise of Die


পরোক্ষ ধূমপানে বিশ্বে প্রতি বছর প্রায় ছয় লাখ মানুষ মারা যাচ্ছে। এর মধ্যে এক লাখ ৬৫ হাজারই শিশু।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) গবেষকরা শুক্রবার একথা জানিয়েছেন।

বিশ্বে পরোক্ষ ধূমপানের প্রভাব নিরুপণে প্রথমবারের মতো পরিচালিত গবেষণায় ডব্লিউএইচও'র গবেষকরা জানতে পেরেছেন, অন্যদের চেয়ে শিশুরাই এর সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। এর কারণে বছরে প্রায় এক লাখ ৬৫ হাজার শিশুর মৃত্যু হচ্ছে।

আনেত্তে প্রাস উসতুনের নেতৃত্বে পরিচালিত ওই গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, "এর মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশ শিশুর মৃত্যু হচ্ছে আফ্রিকা ও দক্ষিণ এশিয়ায়।"

শিশুরা ঘরেই পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয় এবং এতে তাদের নানা ধরনের রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

গবেষণায় পাওয়া ফলাফলের ওপর ল্যাঞ্চেট জার্নালে মন্তব্য করতে গিয়ে সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হিদার উইপফ্লি ও জনাথন স্যামেটা বলেন, ঘরের মধ্যে ধূমপান না করতে জনসচেতনতা বাড়াতে নীতি-নির্ধারকদের কাজ করা উচিত।

২০০৪ সালে ১৯২টি দেশের মানুষের মৃত্যুর ওপর গবেষণা চালিয়েছেন তারা।

তাদের পাওয়া তথ্যমতে, ২০০৪ সালে বিশ্বব্যাপী ৪০ শতাংশ শিশু, ৩৩ শতাংশ অধূমপায়ী পুরুষ ও ৩৫ শতাংশ অধূমপায়ী নারী পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয়ে মারা গেছেন।


Source: Internet
Title: Some etiquette of dua
Post by: arefin on December 05, 2012, 10:49:31 AM
দুআ করার কয়েকটি আদব
-------------------------------------
আল্লাহর কাছে অত্যন্ত বিনীতভাবে ধর্না দেয়া এবং নিজের দুর্বলতা, অসহায়ত্ব ও বিপদের কথা আল্লাহর কাছে প্রকাশ করা :
-----------------------------------------------------------------------------------------
আইউব আ. কিভাবে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেছেন, আল্লাহ সে সম্পর্কে বলেন:

এবং স্মরণ কর আইউবের কথা, যখন সে তার প্রতিপালকের কাছে প্রার্থনা করে বলেছিল, আমি দুঃখ-কষ্টে পড়েছি, আর তুমি তো সর্বশ্রেষ্ঠ দয়ালু।
(সুরা আম্বিয়া : ৮৩)

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন যাকারিয়া আ. এর প্রার্থনা সম্পর্কে বলেন :

সে বলেছিল, হে আমার প্রভু! আমার অস্থি দুর্বল হয়েছে, বার্ধক্যে আমার মস্তক সাদা হয়ে গেছে। হে আমার প্রতিপালক! তোমার কাছে প্রার্থনা করে আমি কখনো ব্যর্থকাম হইনি। আমি আশংকা করি আমার পর আমার সগোত্রীয়দের সম্পর্কে ; আমার স্ত্রী বন্ধ্যা। সুতরাং তুমি তোমার নিকট হতে দান কর উত্তরাধিকার।
(মারইয়াম : ৪-৫)

ইবরাহীম আ. এর দুআ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন :

হে আমাদের রব, নিশ্চয় আমি আমার কিছু বংশধরদেরকে ফসলহীন উপত্যকায় তোমার পবিত্র ঘরের নিকট বসতি স্থাপন করালাম, হে আমাদের রব, যাতে তারা সালাত কায়েম করে। সুতরাং কিছু মানুষের হৃদয় আপনি তাদের দিকে ঝুঁকিয়ে দিন এবং তাদেরকে রিয্‌ক প্রদান করুন ফল-ফলাদি থেকে, আশা করা যায় তারা শুকরিয়া আদায় করবে।’
(ইবরাহীম : ৩৭)

কুরআন কারীমে এ ধরনের বহু আয়াত আছে যাতে তুলে ধরা হয়েছে নবী রাসূলগণ কিভাবে কাতরতা ও বিনয়ের সঙ্গে নিজেদের করুণ অবস্থা আল্লাহর কাছে তুলে ধরেছেন। মুমিনদের কর্তব্য ঠিক এমনিভাবে আল্লাহর কাছে দুআ ও প্রার্থনা করা।


দুআয় আল্লাহর হামদ ও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি দরূদ পেশ করা :
---------------------------------------------------------------------------------------------------
দুআর শুরুতে আল্লাহ তাআলার প্রশংসা করা ও রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি দরূদ পড়া দুআ কবুলের সহায়ক বলে হাদীসে এসেছে।

ফুযালা ইবনু উবাইদ রা. থেকে বর্ণিত যে, একদিন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দেখলেন এক ব্যক্তি দুআ করছে কিন্তু সে দুআতে আল্লাহর প্রশংসা ও রাসূলের প্রতি দরূদ পাঠ করেনি। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে লক্ষ্য করে বললেন, সে তাড়াহুড়ো করেছে। অতঃপর সে আবার প্রার্থনা করল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে অথবা অন্যকে বললেন, যখন তোমাদের কেউ দুআ করে তখন সে যেন আল্লাহ তাআলার প্রশংসা ও তার গুণগান দিয়ে দুআ শুরু করে। অতঃপর রাসূলের প্রতি দরূদ পাঠ করে। এরপর যা ইচ্ছা আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করে। (আবু দাউদ ও তিরমিজী)

আল্লাহর সুন্দর নামসমূহ ও তাঁর মহৎ গুণাবলি দ্বারা দুআ করা :
----------------------------------------------------------------------
আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন :
আল্লাহর রয়েছে সুন্দর সুন্দর নাম। অতএব তোমরা তাকে সে সকল নাম দিয়ে প্রার্থনা করবে। (আল-আরাফ : ১৮০)
আল্লাহ তাআলার সুন্দর নাম ও মহান গুণাবলির মাধ্যমে দুআ করার কথা আল-কুরআনে ও হাদীসে বহু স্থানে এসেছে। যেমন ইবনু আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত :

নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রাতে যখন তাহাজ্জুদ পড়তে দাঁড়াতেন তখন বলতেন, হে আল্লাহ আপনারই প্রশংসা, আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীসমূহে ও তাতে যা কিছু আছে আপনি তার জ্যোতি। আপনারই প্রশংসা, আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীসমূহে এবং তাতে যা কিছু আছে আপনি তার ধারক। আপনারই প্রশংসা, আপনি সত্য, আপনার ওয়াদা সত্য, আপনার কথা সত্য, আপনার সঙ্গে সাক্ষাত সত্য, জান্নাত সত্য, জাহান্নাম সত্য, কিয়ামত সত্য, নবীগণ সত্য, মুহাম্মদ সত্য। হে আল্লাহ! আপনার কাছেই আত্মসমর্পন করেছি। আপনার ওপরই নির্ভর করেছি। আপনার প্রতি ঈমান এনেছি। আপনার দিকে ফিরে এসেছি। আপনার জন্য বিবাদ করেছি। আপনাকেই বিচারক মেনেছি। অতএব আপনি আমার পূর্ব ও পরের গোপন ও প্রকাশ্যের পাপগুলো ক্ষমা করে দিন। আপনি শুরু আপনি শেষ। আপনি ছাড়া কোনো ইলাহ নেই। (বুখারী ও মুসলিম)

এ হাদীসে দেখা গেল নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুআয় কিভাবে আল্লাহর গুণগান করছেন। আল্লাহর সুন্দর নামগুলো উল্লেখ করেছেন।
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একদিন শুনলেন এক ব্যক্তি সালাতে আত্তাহিয়্যাতুর বৈঠকে এ বলে দুআ করছে :
أللهم إني أسألك يا الله الأحد الصمد الذي لم يلد ولم يولد ولم يكن له كفوا أحد، أن تغفر لي ذنوبي إنك أنت الغفور الرحيم. فقال صلى الله عليه وسلم : "قد غفر له، قد غفر له. )رواه أبو داود والنسائي وأحمد وابن خزيمة وصححه الحاكم(
হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে প্রার্থনা করছি- আপনি তো এক; অদ্বিতীয়, যিনি কাউকে জন্ম দেননি এবং তাকেও কেউ জন্ম দেয়নি। কেউ নেই তাঁর সমকক্ষ- আপনি আমার পাপগুলো ক্ষমা করুন। আপনি পরম ক্ষমাশীল ও দয়াময়।
এ প্রার্থনা শুনে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন : তাকে ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে! তাকে ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে। (আবু দাউদ, নাসায়ী ও ইবনু খুযাইমা)
উল্লেখিত ব্যক্তি আল্লাহর সুন্দর নাম ও গুণাবলির মাধ্যমে দুআ করার কারণে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুআ কবুলের সংবাদ দিলেন।
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরেক ব্যক্তিকে দেখলেন সালাতে তাশাহহুদে সে এ বলে দুআ করছে :
اللهم إني أسألك بأن لك الحمد لا إله إلا أنت المنان بديع السماوات والأرض يا ذاالجلال والإكرام يا حي يا قيوم أسألك الجنة واعوذبك من النار. فقال النبي صلى الله عليه وسلم لأصحابه : تدرون بما دعا ؟ قالوا : الله ورسوله أعلم. قال : والذي نفسي بيده لقد دعا الله باسمه العظيم وفي رواية : الأعظم . الذي إذا دعي به أجاب، وإذا سئل به أعطى. )رواه أبو داود والنسائي وأحمد والبخاري في الأدب المفرد(
হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে প্রার্থনা করছি -এ কথার উসীলায় যে, সকল প্রশংসা আপনার, আপনি ছাড়া কোনো ইলাহ নেই। আপনি দানশীল, আকাশমন্ডলী ও পৃথিবীর স্রষ্টা, হে মহিমময় ও মহানুভব! হে চিরঞ্জীব ও সর্ব সত্তার ধারক!- আপনার কাছে জান্নাত চাচ্ছি এবং মুক্তি চাচ্ছি জাহান্নাম থেকে। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ প্রার্থনা শুনে তার সাহাবীদের বললেন: তোমরা কি জানো, সে কি দিয়ে দুআ করেছে? তারা বললেন, আল্লাহ ও তার রাসূল ভাল জানেন। তিনি বললেন: সে আল্লাহর মহান নাম দিয়ে দুআ করেছে। যে ব্যক্তি এ নামের মাধ্যমে দুআ করবে তার দুআ তিনি কবুল করবেন। (অন্য এক বর্ণনায় এসেছে যে ইসমে আজম দিয়ে দুআ করেছে) ।

বর্ণনায়: আবু দাউদ, নাসায়ী, আহমদ এবং বুখারী বর্ণনা করেছেন তার ‘আল-আদাব আল-মুফরাদ কিতাবে।

ইউনূছ আ. এর প্রার্থনা -যখন তিনি মাছের পেটে ছিলেন- তুমি ব্যতীত কোনো ইলাহ নেই তুমি পবিত্র, মহান! আমি তো সীমালংঘনকারী। যে কোনো মুসলিম এ কথা দিয়ে প্রার্থনা করবে তার প্রার্থনা আল্লাহ কবুল করবেন। (তিরমিজী)

Title: ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১২
Post by: arefin on December 05, 2012, 11:01:07 AM
আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তির আয়োজন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১২। এই আয়োজনকে নিয়ে প্রযুক্তি প্রিয় মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। প্রযুক্তিকে ভালোবাসে এমন মানুষ গুলো এখন অপেক্ষার প্রহর গুনছে। দেশের সবচেয়ে বড় এই আয়োজন তুলে ধরা হলো ।

(http://img.priyo.com/files/201212/DW640_0.jpg)


থিম : সমৃদ্ধির জন্য জ্ঞান (Knowledge for prosperity)
স্থান : বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, ঢাকা।
তারিখ ও সময় : ৬ থেকে ৮ ডিসেম্বর, ২০১২; প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা

আয়োজক
: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়,
বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)
অ্যাক্সেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম

সহযোগিতায় : BCS, BASIS, BACCO, ISPAB, AMTOB

পার্টনার : CTO Forum, Cloud Camp, BIJF, APC
মিডিয়া পার্টনার : ATN News, Ekattor TV

প্রবেশ মূল্য : বিনামূল্যে প্রবেশের ব্যবস্থা।
সেমিনার/ কর্মশালা/ সমাবেশ: ২৮ টি।

উল্লেখযোগ্য আয়োজন
: ফ্রিল্যান্সার সমাবেশ,ডিজিটাল উদ্যোক্তা সমাবেশ,জনগণের দোরগোড়ায় সেবা, ক্লাউড ক্যাম্প, নারীর ক্ষমতায়নে তথ্য প্রযুক্তি, প্রযুক্তি নির্ভর আনন্দময় শিক্ষা

সেমিনার/ কর্মশালার বক্তা : দেশী বিদেশী প্রায় ১৩০ জন।
প্রদর্শনকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা : ৬০টি বেসরকারি, ২৭টি মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও আন্তর্জাতিক ষ্টল।

অংশগ্রহণকারী উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান: Microsoft, Intel, Dell, GPIT, Teletalk, Samsung, Cisco, LEADS Coorporation Ltd, Datasoft, IBCS-PRIMEX software Ltd, EATL, Computer Source etc.

Expo Lounge : দেশীয় রোবট ও সফটওয়্যার প্রদর্শনী
: থ্রিজি এক্সপেরিয়েন্স জোন
: ইন্টারনেট সেন্টার ও হাইটেক এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের অতিথি : কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু দৌহিত্র সজিব আহমেদ ওয়াজেদ জয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি(আইসিটি) মন্ত্রী মোস্তফা ফারুক মোহাম্মদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সচিব নজরুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের(বিসিসি) নির্বাহী পরিচালক ড. জ্ঞানেন্দ্র নাথ বিশ্বাস।

সমাপণী অনুষ্ঠানের অতিথি : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানী বিষয়ক উপদেষ্টা ড: তৌফিক এলাহী চৌধুরী,তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি(আইসিটি) মন্ত্রী মোস্তফা ফারুক মোহাম্মদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সচিব নজরুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের(বিসিসি) নির্বাহী পরিচালক ড. জ্ঞানেন্দ্র নাথ বিশ্বাস।

আয়োজন : তিন দিনের ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের নানা আয়োজনে থাকছে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের উপস্থাপনায় সেমিনার ও কর্মশালা। এটি সফল নাগরিক সেবা, প্রযুক্তি পণ্য ও সেবা এবং সাম্প্রতিক প্রযুক্তির ধারা নিয়ে প্রদর্শনী, মুক্ত পেশাজীবীদের সম্মেলন, কারিগরি উদ্যোক্তাদের সম্মেলন। এর মধ্যে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য হলো ফ্রিল্যান্সার ও ডিজিটাল উদ্যোক্তাদের সম্মেলন, জনগণের দোড়গোড়ায় সেবার নানা দিক উদযাপন, নারীদের জন্য টেক ব্যাক দি টেক নামে একটি আয়োজন এবং শিশুদের জন্য চিলড্রেন’স ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড।

৬ ডিসেম্বর একটি সাধারণ সেমিনারে তুলে ধরা হবে ক্লাউড কম্পিউটিংয়ের বিভিন্ন দিক। ৭ ডিসেম্বর ক্লাউড ক্যাম্পে ওপেন স্টেক, বিগ ডেটা, ক্লাউড নিরাপত্তা, মোবাইল অ্যাপলিকেশন সম্পর্কে আলোচনা হবে।

অংশগ্রহনকারী দেশ ও প্রতিষ্ঠান : বিভিন্ন দেশের তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর প্রতিষ্ঠানের সদস্য, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের সম্মলেনে অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। সবচেয়ে বেশি স্পীকার আসছেন আমেরিকা থেকে। এছাড়া সিঙ্গাপুর, ইউকে, দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান, কোরিয়া, থাইল্যান্ড, এস্তোনিয়া, ভারতসহ একাধিক দেশ থেকে বিশেষজ্ঞরা আসছেন। আন্তর্জাতিক ফ্রিল্যান্সিং সাইট ওডেস্ক, ফ্রিল্যান্সার ডট কম, ইল্যান্সসহ বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেসের শীর্ষ কর্মকর্তারা ও অভিজ্ঞ ফ্রিল্যান্সরাছাড়াও দেশীয় মুক্তপেশাজীবিরা উপস্থিত থাকছেন।

উল্লেখযোগ্য বক্তা: ডেলের ওপেন স্ট্যাক প্রকল্পের স্থপতি জুড মালটিল, ক্লাউড নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ লেনি জেলসটার এবং ক্লাউড কম্পিউটার সেবাপ্রতিষ্ঠান ভার্চুস্ট্রিমের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি রুভেন কোহেন।

গুজল ইনকর্পোরেটেডের প্রতিষ্ঠাতা ও নিউ ইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আদিত্য ওয়াতাল, ন্যাশনাল বিজনেস ইনকিউবেশন অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক টম স্ট্রোডথবেক, স্পার্কলাইন অ্যানালাইটিক্সের প্রতিষ্ঠাতা ভিনোজ ভিজেয়কুমার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক কে. সিদ্দিক-ই রব্বানী।

ফ্রিল্যান্সার ডট কমের ভাইস প্রেসিডেন্ট (প্রকৌশল) ডেভিড হ্যারিসন, ইল্যান্স ডট কমের ভাইস প্রেসিডেন্ট জেটিল ওলসেন ও ডিরেক্টর অব মার্কেটিং অ্যালেক্স ইয়োন, ওডেস্কের ভাইস প্রেসিডেন্ট (মার্কেট প্লেস অপারেশন) ম্যাট কুপার।


(http://img.priyo.com/files/201212/digital.jpg)
Title: আসছে নতুন প্রজন্মের জিপিএস ৩
Post by: Muhammad Siddiqur Rahman on December 05, 2012, 11:09:00 AM
গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম (জিপিএস) বর্তমান পৃথিবীর যোগাযোগ ব্যবস্থার এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। কিন্তু সিগন্যাল জ্যামিংয়ের মতো বিভিন্ন সীমাবদ্ধতার কারণে কিছু ক্ষেত্রে এ প্রযুক্তির নির্ভরযোগ্যতা হ্রাস পেয়েছে। এরই মধ্যে স্যাটেলাইট সিগন্যাল জ্যাম করে মার্কিন একটি ড্রোনের নিয়ন্ত্রণ দখল করার দাবি করেছে ইরান। সংবাদ সংস্থা ফক্স নিউজ সম্প্রতি এক খবরে জানিয়েছে, পুরনো ওই প্রযুক্তির সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে নতুন প্রযুক্তির জিপিএস বানাতে পৃথকভাবে কাজ করছে মার্কিন, ব্রিটিশ ও চীনা বিভিন্ন প্রতিরক্ষাপণ্য প্রস্তুতকারী বিভিন্ন সংস্থা।

গত সপ্তাহে মার্কিন প্রতিরক্ষাপণ্য নির্মাতা লকহিড মার্টিন নির্মিত নতুন প্রজন্মের জিপিএস ৩-এর সফল পরীক্ষা করেছে। এর আওতায় পুরনো স্যাটেলাইটগুলোর বদলে জ্যাম করার অনুপযোগী একঝাঁক নতুন স্যাটেলাইট বসানো শুরু হবে ২০১৪ সাল থেকে।

অন্যদিকে ব্রিটিশ প্রতিরক্ষাপণ্য প্রস্তুতকারী ‘বিএই’ স্যাটেলাইটের ওপর নির্ভর করার বদলে সবধরনের ব্যবহৃত সিগন্যালই এ কাজে লাগাবে। এসব সিগন্যালের মধ্যে রয়েছে টিভি, ওয়াই-ফাই, রেডিও ও মোবাইল ফোন। এমনকি সিগন্যাল জ্যামারকেও কাজে লাগানো হবে এ প্রযুক্তিতে। প্রায় ১২ হাজার মাইল দূর থেকে আসা স্যাটেলাইট সিগন্যালের বদলে স্থানীয়ভাবে পাওয়া সিগন্যাল নিখুঁত হবে বলে জানিয়েছে বিএই।

গতবছর ইউরোপিয়ান কমিশন জানায়, ইউরোপের জিডিপির ছয় থেকে সাত শতাংশ বা প্রায় এক ট্রিলিয়ন ডলার নির্ভর করছে জিপিএস নেভিগেশনের ওপর। রাশিয়ার প্রতিষ্ঠান ‘গ্লোনাস’, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ‘গ্যালিলিও’ ও চীনা প্রতিষ্ঠান ‘কম্পাস’ এ প্রযুক্তি উন্নয়নে কাজ করছে। চীনা নেভিগেশন সিস্টেমটির লক্ষ্য ২০২০ সালের মধ্যে ৩৫টি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে নেভিগেশন সেবা দেয়া।
Title: ছড়া
Post by: Mohammad Nazrul Islam on December 05, 2012, 01:15:13 PM
ছড়া
     -
বাঙ্গী বেন িশয়াল রাজা
সুেরর রাজা েকালা,
হািত হল বুকার রাজা
জািতর বুিঝ জুলা !!
কােলা িবড়াল নােমর নািম
ছাগেলর মুেখ দািড়,
বুডু দাদুর পা চেল না
েচলার-বাড়াবািড় !!
কাক সািজল ময়ুর েবেস
েনতা বেন হুদু,
মস্লা বািট-খােন খানান
রান্না কের কদু !!
সুেযাগ বুেঝ হুজুক মশাই
বেন েগেছ রাজা,
নন্দ বাবুর কপাল খারাপ
-- িচর েদাষী পঁজা !!
Title: Re: পরোক্ষ ধূমপানে বছরে ১ লাখ ৬৫ হাজার শিশুর মù
Post by: nmoon on December 05, 2012, 02:47:59 PM
Sad news. This is really harmful for innocent people.
Title: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: nmoon on December 05, 2012, 04:21:29 PM
ঢাকা, সেপ্টেম্বর ১০ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- অতিরিক্ত ওজনের মানুষরাও সুস্থ ও কর্মক্ষম হতে পারে। এমনকি তাদের হার্টঅ্যাটাক বা ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা স্বাভাবিক ওজনের মানুষের সমান বলেই জানিয়েছেন গবেষকরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুস্থ থাকার মূল চাবিকাঠি হচ্ছে ‘সুষ্ঠ বিপাকক্রিয়া’। অর্থাৎ উচ্চ রক্তচাপ, রক্তে কোলেস্টোরল ও শর্করার মাত্রা বেশি না থাকা এবং নিয়মিত ব্যায়াম করা।

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৩ হাজারের বেশি নাগরিকের স্বাস্থ্য বিষয়ক উপাত্ত বিশ্লেষণ করে গবেষকরা এ তথ্য পেয়েছেন বলে সোমবার জানিয়েছে বিবিসি। গবেষণার ফল প্রকাশ করেছে ‘ইউরোপিয়ান হেলথ’ জার্নাল।
(http://www.bdnews24.com/nimage/2012-09-10-17-36-15-obese.jpg)

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব সাউথ ক্যারোলাইনার গবেষকরা দেখতে পান, গবেষণায় অংশ নেয়া এক তৃতীয়াংশের বেশি মানুষ অতিরিক্ত ওজনের। এদের মধ্যে অর্ধেক অর্থাৎ ১৮ হাজার ৫০০ জন বিভিন্ন শারিরীক পরীক্ষার পর ‘সুষ্ঠ বিপাকক্রিয়াসম্পন্ন’ বলে প্রমাণিত হয়েছে।

এ দলের সদস্যদের মধ্যে ডায়াবেটিস, উচ্চমাত্রার কোলেস্টোরল ও উচ্চ রক্তচাপ নেই। অতিরিক্ত ওজনের হলেও এরা অপেক্ষাকৃত বেশি কর্মক্ষম এবং অন্যদের তুলনায় বেশি ব্যায়াম করে থাকে।

এদের মধ্যে কোনো ধরনের হৃদরোগ বা ক্যান্সারে মৃত্যুর আশঙ্কা স্বাভাবিক ওজনের মানুষদের সমান। অপেক্ষাকৃত ‘কম সুষ্ঠু বিপাকক্রিয়াসম্পন্ন’দের তুলনায় এ আশঙ্কা অর্ধেক।

প্রধান গবেষক ও স্পেনের ইউনিভার্সিটি অব গ্রানাডার শিক্ষক ডা. ফ্রান্সিস ওর্তেগা বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে, অতিরিক্ত ওজন থাকলেও যথেষ্ট পরিমাণ ব্যায়াম শরীরকে সুস্থ রাখে। এ গবেষণায় সুস্থ ও কর্মক্ষম শরীরের গুরুত্ব আবারো প্রমাণিত হলো।

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশনের চিকিৎসক এমি টম্পসন বলেন, বেশিরভাগ হৃদরোগীর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ওজনকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করা হয়। তবে এ গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে আসলে ওজন নয়, বরং শরীরের কোন অংশে মেদ জমছে সেটিই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

দেহের মধ্যবর্তী অংশে অর্থাৎ কোমর ও পেটে মেদ জমলে তা শরীরে ক্ষতিকর উপাদান সৃষ্টি করে এবং এতে হৃদরোগের আশঙ্কা বেড়ে যায় বলে জানান তিনি।
Title: Heart Attack and Vitamin D
Post by: nmoon on December 05, 2012, 04:24:18 PM
নিউইয়র্ক, সেপ্টেম্বর ০৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- রক্তে উচ্চমাত্রায় ভিটামিন ডি থাকলেই তাদের হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস পায় না। সম্প্রতি এক গবেষণায় এ ধরনের তথ্যই পেয়েছেন গবেষকরা।

বয়স্ক নারীদের রক্তে উচ্চমাত্রায় ভিটামিন ডি থাকলে তা কোলেস্টেরল, উচ্চ রক্তচাপ ও রক্তে শর্করার পরিমাণ কমিয়ে হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস করে বলে মনে করা হতো।

তবে এসব গবেষণা ভিটাসিন ডি’র সঙ্গে হার্টঅ্যাটাকের ঝুঁকি হ্রাস হওয়ার কোনো কার্যকারণ প্রমাণ করতে পারেনি।

Heart Attack and Vitamin D

বরং সাম্প্রতিক গবেষণায় ভিটামিন ডি’র বদলে ভিটামিনবিহীন প্লেসিবো বড়ি খাওয়ার ফলে এ ঝুঁকি কমার লক্ষণ দেখা গেছে।

৩০৫ জন ষাটোর্ধ্ব নারীকে তিন দলে বিভক্ত করেন যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব অ্যাবারডিনের অ্যাড্রিয়ান উড। এদের মধ্যে এক দলকে টানা এক বছর ধরে ৪০০ ইউনিট ভিটামিন ডি, অন্য দুই দলকে ১০০০ ইউনিট ভিটামিন ডি অথবা প্লেসিবো খেতে দেওয়া হয়।

গবেষণায় অংশ নেওয়া নারীরা প্রতি দুই মাস অন্তর হৃদযন্ত্র সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষায় অংশ নিতেন। এসব পরীক্ষায় দেখা যায়, অংশগ্রহণকারীদের হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভিটামিন ডি গ্রহণের মাত্রার ভিত্তিতে পরিবর্তিত হয়নি, বিভিন্ন ঋতুতে আবহাওয়া অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়েছে।

সম্পূর্ণ গবেষণায় এ তিন দলের হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্যের মধ্যে খুব বেশি পরিবর্তন দেখা যায়নি। জার্নাল অব ক্লিনিকাল এন্ডোক্রিনোলজি অ্যান্ড মেটাবলিজম পত্রিকায় এ গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেন অ্যাড্রিয়ান উড ও তার দল।

তবে দি ইনিস্টটিউট অব মেডিসিনের পরামর্শ অনুযায়ী, বেশিরভাগ পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির প্রতিদিন ৬০০ ইউনিট ভিটামিন ডি গ্রহণ করা উচিত। সাধারণত কডলিভার অয়েল ও অন্যান্য মাছ, দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার এবং বিভিন্ন সংরক্ষিত ফলের রসে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়।

২০১০ সালের একটি গবেষণায় একসঙ্গে ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম গ্রহণের ফলে হাড়ের উপকার হওয়ার গ্রহণযোগ্য প্রমাণ পাওয়া যায়।

তবে উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদযন্ত্রের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে এর ভূমিকার গ্রহণযোগ্য প্রমাণ পাওয়া যায়নি।
Title: পালা বদলের কাজ হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়
Post by: nmoon on December 05, 2012, 04:31:35 PM
লন্ডন, জুলাই ২৭ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- দিনে কাজ করা কর্মীদের চেয়ে পালা বদল করে কাজ করে এমন কর্মীদের হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি।

ব্রিটিশ মেডিক্যাল জার্নালে (বিএমজে) প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনগুলো বিশ্লেষণ করে গবেষকরা দেখতে পান, পালা বদল করে কাজ করলে দেহঘড়ি তার ছন্দ হারায় এবং জীবনযাত্রার ওপরও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

এর আগে পালা বদলের কাজে উচ্চ রক্ত চাপ ও ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ে বলে জানা গেছে।

তবে রাতের পালায় কাজের হার কমিয়ে দিলে কর্মীরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

কানাডা ও নরওয়ের একদল গবেষক পূর্ববর্তী ৩৪ টি গবেষণা বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গবেষকরা তাদের পর্যালোচনায় দেখতে পান, মস্তিস্কে রক্ত সঞ্চালনের পরিমাণ কম হওয়ায় ১৭ হাজার ৩৫৯ টি ক্ষেত্রে হৃদযন্ত্রে রক্তসরবরাহকারী ধমনীতে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়াসহ ৬ হাজার ৫৯৮ টি হার্ট অ্যাটাক এবং ১ হাজার ৮৫৪ টি স্ট্রোকের ঘটনা ঘটেছে। এ রোগগুলো পালাবদলের কাজ করা কর্মীদের ক্ষেত্রে বেশি হয়ে থাকে।

বিএমজে’র গবেষণাগুলোয় দেখা গেছে, পালাবদলের কাজ করলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি ২৩ শতাংশ, ধমনিতে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার ঝুঁকি ২৪ শতাংশ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি ৫ শতাংশ বৃদ্ধি পায়।

তবে গবেষকরা এ কথাও বলেছেন, পালা বদলের কাজ হৃদরোগে মৃত্যুহার বাড়িয়ে দিচ্ছে এমন নয় এবং এ কারণে হওয়া হৃদযন্ত্রের সমস্যাগুলো ‘পরিমিত’।

লন্ডনের ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কানাডার অন্টারিও বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড্যান হাকাম জানিয়েছেন, পালাবদলের কর্মীদের ঘুমের সময় নির্দিষ্ট থাকে না এবং তাদের খাদ্যাভ্যাসও থাকে এলোমেলো। তাই তাদের মধ্যে এ রোগগুলোর ঝুঁকি বেশি থাকে।

যুক্তরাজ্যের ইন্সটিটিউট অব অকুপেশনাল সেফটি এন্ড হেলথ- এর গবেষণা ও তথ্য সেবা ব্যবস্থাপক জেন হোয়াইট জানিয়েছেন, “স্থায়ী রাতের পালা এড়িয়ে, ১২ ঘন্টার বেশি কাজ না করে এবং পালাবদলের কাজ করলে কমপক্ষে দুই রাত পুরোপুরি ঘুমিয়ে এ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।”

এছাড়া রাতে, বিকালে বা প্রচলিত অফিস সময়ে যখনই কাজ করা হোক না কেন সুষম খাদ্য খেলে, নিয়মিত ব্যায়াম করলে এবং ধূমপান না করলে হৃদযন্ত্র অধিকতর ভাল থাকবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
Title: Pilot less Aircraft
Post by: tariq on December 05, 2012, 07:23:40 PM
Because of various english movies or Afghan and Iraq war unmanned arial vehicle (UAV) is a familiar name to us. Though there are many types of UAVs available 'Drone' is the most familiar one. We many times fantasize or sometimes become astonished by the multi-role applications of drone, that pilot less small aircraft capable of video surveillance, bombing, intercepting other hostile aircraft etc. But more astonishing is that now researchers are trying to develop pilot less aircraft as passenger carrier. So a whole new era is about to begin in aviation industry. Imagine a large passenger craft carrying hundreds of passengers is flying without any pilot. Yes certainly there is a pilot but at ground station and at the same time he is flying a number of aircraft.

Within the next few weeks a twin-engined Jetstream will take off from Warton Aerodrome in Lancashire, England, and head north towards Scotland. Like any other flight, the small commuter airliner will respond to instructions from air-traffic controllers, navigate a path and take care to avoid other aircraft. But there will be no pilot in cockpit.

This will be the first test run of such passenger aircraft. If this is successful then we can hope that in near future we are going enjoy flight in a pilot less aircraft.             
Title: Dhaka: City of Mosque
Post by: shurid_1100 on December 06, 2012, 01:37:34 AM
মসজিদের শহর ঢাকা শহর এখন রাস্তায় উলঙ্গপনা ও অশ্লীল বিলবোর্ড প্রদর্শনীর শহরে পরিণত হয়েছে। যেইদিকেই চোখ যাবে সেইদিকেই দেখা যাবে অশ্লীলতার ছড়াছড়ি । বেহায়্যাপনার মাত্রাতিরিক্ততার কারনে মানুষের 'নৈতিকতা' , 'মূল্যবোধ' , 'হায়া' বরফ গলানোর মত করে আস্তে আস্তে বিসর্জন হচ্ছে ।

লজ্জা মানবজীবনের অনেক বড় সম্পদ । হাদীসে আছে , রাসুল(সঃ) পর্দানশীল কুমারী নারীর চাইতে বেশি লজ্জাশীল ছিলেন । আর আমরা সেই রাসুল(সঃ) এরউম্মত হয়ে ইহুদী-খ্রিস্টানদের কালচারে অভ্যস্ত হয়ে লজ্জাকে বিসর্জন দিয়ে নির্লজ্জভাবে বেহাইয়াপনাকে সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে পোঁছায় দিচ্ছি । এইজন্য আমাদের ন্যূনতম লজ্জা থাকা উচিত :(

আল্লাহ বলেন ,
"যেদিন প্রকাশ করে দেবে তাদের জিহবা, তাদের হাত ও তাদের পা, যা কিছু তারা করত ; সেদিন আল্লাহ তাদের সমুচিত শাস্তি পুরোপুরি দেবেন এবং তারা জানতে পারবে যে, অল্লাহই সত্য, স্পষ্ট ব্যক্তকারী " [ সূরা আন-নুর , ২৪-২৫]
"যারা পছন্দ করে যে, ঈমানদারদের মধ্যে ব্যভিচার প্রসার লাভ করুক, তাদের জন্যে ইহাকাল ও পরকালে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি রয়েছে। আল্লাহ জানেন, তোমরা জান না"[ সুরা আন-নুর , ১৯নং আয়াত ]

আল্লাহ আমাদের ক্ষমা করুন এবং বুঝার তওফিক দান করুন ।
Title: ''দুধে হরলিক্‌স মিশাও দুধের শক্তি বাড়াও......"
Post by: shurid_1100 on December 06, 2012, 01:39:40 AM
''দুধে হরলিক্‌স মিশাও
দুধের শক্তি বাড়াও......"
এত্ত ঝামেলার দরকার কি??? গরুরে হরলিক্‌স খাওয়াইলেই তো হয় !! যত্তসব প্রতারকের দল !!
বেশি টাকা খরচ করে বিদেশি কোম্পানিগুলোর এইসব কৃত্রিম খাবার বাচ্চাদের না খেতে দিয়ে শাক-সবজি, রঙিন ফলমূল, ছোট মাছ, সামদ্রিক মাছ, বিভিন্ন রকম ডাল, ছোলা, বাদাম, বিন, মাংস, ডিম, খিচুড়ি, রাফেজ বা আঁশযুক্ত খারার খেতে দিন। হরলিক্‌স বা এই ধরনের কোনো খারাব বাচ্চাদের Tall
er, stronger, sharper বানায় না। এই সব গাঁজাখুরি বিজ্ঞাপনগুলো দিয়ে সাধারণ মানুষের ব্রেইনওয়াশ করা হচ্ছে। এইভাবে বিদেশি কোম্পানিগুলো সাধারণ মানুষের মগজ ধোলাই করে কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। যাহোক, দুধে প্রায় সব ধরনের পুষ্টিগুণ থাকে, সুতরাং শুধু শুধু টাকা নষ্ট করে দুধে হরলিক্‌স মিশিয়ে দুধের পুষ্টিগুণ বাড়ানোর কোনো প্রয়োজন নেই।

আর একটা কথা, চকলেট, চিপস অথবা খুব সুন্দর মোড়কে প্যাকেটজাত কোনো খাবার বাচ্চাকে কিনে দিয়ে তাদের ক্ষতি করবেন না, এই সব বাহিরের খাবার দিয়ে তাদের ছোট্ট পেটটা ভরবেন না, তাদের খাওয়ার রুচি নষ্ট করবেন না।

আর আপনি যদি আরও সচেতন হয়ে থাকেন তাহলে হাইব্রিড বা জেনিটিক্যালি মোটিফাইড (জিএম) ফুড খাওয়াও বাদ দিতে পারেন

প্লিস বন্ধুরা এই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য টি সবার কাছে ছড়িয়ে দাও....
নিজে সচেতন হও অন্যদের ও সচেতন করো............
Title: get free awesome pc QURAN
Post by: shurid_1100 on December 06, 2012, 01:58:12 AM
anyone willing to have QURAN SHARIF software in your pc, you can have by calling me. its a nice speaking QURAN software for ur pc. you can listen it, see it. no internet connection necessary. call me 01672292283
pen drive or memory card necessary to transfer it .
Title: Childhood punishment & depression
Post by: nmoon on December 06, 2012, 09:59:17 AM
শৈশবে ধাক্কা, থাপ্পর বা আঘাত পাওয়া শিশুদের মধ্যে পরবর্তীতে হতাশা, উদ্বেগ ও ব্যক্তিত্বের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

সম্প্রতি কানাডার একদল গবেষকের পরিচালিত এক গবেষণায় এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে। পেডিয়াট্রিকস সাময়িকীতে এ গবেষণার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে।

২০০৪-২০০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রে জরিপের জন্য নেওয়া ৩৫ হাজার প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সাক্ষাতকারের তথ্যের ভিত্তিতে নতুন এ গবেষণা করা হয়েছে।

শিশু বয়সে কতবার শারীরিক শাস্তি পেয়েছে, পিতামাতার মাদক বিষয়ক বা কারাগারে যাওয়ার মতো পরিবারের অন্য কোনো সমস্যা ছিলো কিনা এবং বর্তমান বা অতীতের মানসিক সমস্যার বিষয়ে প্রশ্ন করা হয় গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের।

অংশগ্রহণকারীদের ছয় শতাংশ জানায়, তাদের ‘মাঝে মাঝে’, ‘মোটামুটি প্রায়ই’ অথবা ‘প্রায়ই’ শারীরিক শাস্তি দেওয়া হত। আর এদেরই মানসিক সমস্যা অথবা মাদক ও মদ ব্যবহারের সঙ্গে বেশি সংশ্লিষ্টতা লক্ষ করা গেছে।

উদাহরণস্বরূপ, শারীরিক শাস্তি পাওয়ার কথা স্মরণ করতে পেরেছে এমন মানুষের ২০ শতাংশ মনোবল হারিয়েছে এবং ৪৩ শতাংশ মাদক গ্রহণ করেছে। অপরদিকে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে শারীরিক শাস্তি পায় নি অথচ মনোবল হারিয়েছে এমন ব্যক্তির সংখ্যা ১৬ শতাংশ ও অতিরিক্ত মদ্যপানকারীর সংখ্যা ৩০ শতাংশ।

এসব সংযোগ বের করার ক্ষেত্রে অংশগ্রহণকারীদের পারিবারিক সমস্যা, গোত্র, আয় ও শিক্ষাগত যোগ্যতাও বিবেচনা করেছেন গবেষকরা।

প্রধান গবেষক মানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেসি আফিফি ও তার দল জানায়, শারীরিক শাস্তির কারণে শিশুদের দীর্ঘমেয়াদী মানসিক চাপের সৃষ্টি হতে পারে যা থেকে পরবর্তীতে হতাশা বা উদ্বেগের সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

গবেষকদের এ ধরনের ফলাফলে সমর্থন জানিয়েছেন মনস্তত্ববিদ ও টোলেডো কলেজ অব মেডিসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইয়ুথ ভায়োলেন্সের শিক্ষক মিশেল নক্স।

তবে শুধু শাস্তির কারণেই যে শিশুদের মানসিক বৈকল্য ঘটে তা মনে করেন না তিনি।

নক্স বলেন, সাক্ষাতকারদাতারা হয়ত জানেন না তাদের পিতামাতার মানসিক অসুস্থতার কোনো ধরনের চিকিৎসা হয়েছে কিনা। আর হতাশা ও উদ্বেগ অনেকটা বংশানুক্রমিকভাবেই চলে আসে।
Title: Bangladesh & Terrorism
Post by: nmoon on December 06, 2012, 10:02:56 AM
বিশ্বে সন্ত্রাসপ্রবণ দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ৩৯তম; আর এই তালিকায় শীর্ষ চারটি দেশের তিনটিই দক্ষিণ এশিয়ার।

১৫৮টি দেশের ওপর পর্যবেক্ষণ চালিয়ে অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট ফর ইকনোমিক অ্যান্ড পিস (আইইপি) বুধবার যে ‘গ্লোবাল টেররিজম ইনডেক্স’ প্রকাশ করেছে, তাতে এই চিত্রের দেখা মেলে।

২০১১ সালের সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাগুলো সন্নিবেশিত করে ২০১২ সালের প্রতিবেদন তৈরি করেছে আইইপি, বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে গবেষণা চালানো যে প্রতিষ্ঠানটির ব্রত।

আইইপির ওয়েবসাইটে দেয়া এই প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে, ২০১১ সালে বাংলাদেশে ছয়টি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে এবং এতে তিনজন নিহত এবং চারজন আহত হয়েছেন।

এই সব হিসাব করে আইইপি বাংলাদেশকে ৩ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট দিয়েছে, যার ভিত্তিতে দেশের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ৩৯তম।

যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড ইউনিভার্সিটির ন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম ফর দি স্টাডি অব টেররিজম অ্যান্ড রিসপনস টু টেররিজম (স্টার্ট) এর সংগৃহিত ও সংরক্ষিত বিশ্বের সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক তথ্য উপাত্ত থেকে এই সূচক তৈরি করা হয়েছে।

তালিকায় ৯ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট নিয়ে তালিকায় এক নম্বর স্থানে রয়েছে ইরাক, অর্থাৎ বিশ্বে সবচেয়ে সন্ত্রাসপ্রবণ হল মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটি।

ইরাকের পরের তিনটি স্থানে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার তিন দেশ- পাকিস্তান (৯ দশমিক ০৫ পয়েন্ট), আফগানিস্তান (৮ দশমিক ৬৮) ও ভারত (৮ দশমিক ১৫)।

তালিকায় এর পরের স্থানগুলোতে রয়েছে- ইয়েমেন, সোমালিয়া, নাইজেরিয়া, থাইল্যান্ড, রাশিয়া ও ফিলিপিন্স।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কা ১৭তম, নেপাল ২২তম ও ভুটান ৭২তম স্থানে রয়েছে। মালদ্বীপকে এই তালিকায় আনা হয়নি।

এছাড়া তালিকায় চীনের অবস্থান ২৩তম, ইসরায়েলের অবস্থান ২০তম, যুক্তরাজ্যের অবস্থান ২৮তম এবং যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ৪১তম।

তালিকায় শূন্য পয়েন্ট নিয়ে সবচেয়ে নিচে অবস্থান করছে ব্রাজিল, সিঙ্গাপুর, কিউবাসহ ৪২টি দেশ। অর্থাৎ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা এই দেশগুলোতে নেই।

আইইপি সার্বিক পর্যবেক্ষণে বলেছে, ২০০১ সালের পর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা উত্তরোত্তর বেড়ে ২০০৭ সালে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছলেও এরপর থেকে কমতে শুরু করেছে। ২০১১ সালে সন্ত্রাসী হামলায় প্রাণহানির ঘটনা ২০০৭ সালের চেয়ে ২৫ শতাংশ কম।
Title: Re: মসজিদের শহর ঢাকা শহর
Post by: najim on December 06, 2012, 10:29:58 AM
Allah will not forgive us also as we all are silent, not taken any initiative to reduce or to protect it
Title: All In One JavaScript Library Link
Post by: Muhammad Siddiqur Rahman on December 06, 2012, 10:36:56 AM
http://scriptsrc.net/
Title: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: Farhana Helal Mehtab on December 06, 2012, 11:26:48 AM
“Daffodil Moot Court Society”

It’s a great pleasure for the department of law that it has established a moot court society named as “Daffodil Moot Court Society” which obtained approval from the Honorable Vice-Chancellor sir in Dean’s meeting for running its activities formally. I congratulate the teachers & students who were beside me directly & indirectly for this venture. My special thanks to Dean, FHSS, Professor Dr Golam Rahman sir for appreciating & helping me to establish this society. 

Mooting is a legal debate in a moot courtroom which is organized by different moot court society. In the department of law, DIU, we had a well structured moot court room for the law students but no moot court society for dealing with regular mooting and different moot court competitions. Being an ex mooter and former adjudicator of Moot Court Competition, Dhaka University, Law Department, and above all being a coach of moot court competition I prepared a team of DIU Law Department to attend Henry Dunant Memorial Moot Competition 2012 which is a very prestigious competition for law students. Being the first time in Moot competition, their performance was remarkable. But after the competition, it became my desire to have a Moot Court Society in Law Department, DIU. And I personally believe it’s very important for law students. To me mooting is enjoyable and worthwhile for learning law in practical way. Mooting helps students for improving personal skills of argument and public speaking.

I hope & believe ‘Daffodil Moot Court Society’ will uphold the image of Department of Law, DIU, InshAllah. On 12.12.12 we are going to declare the DMCS’s President & Secretary General’ names. Till then I wish everyone good time……

Frahana Helal Mehtab
Associate Professor & Head
Dept of Law
Title: Transformer Robot coming.
Post by: Faysal230 on December 06, 2012, 12:32:13 PM
নিজ থেকেই রূপ বদলাতে সক্ষম 'ট্রান্সফরমার' রোবট তৈরি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) একদল গবেষক। চৌম্বক দিয়ে তৈরি এ রোবট প্রয়োজনে নিজ থেকেই নতুন রূপ ধারণ করতে পারবে।
নতুন প্রযুক্তির রোবটটি ভবিষ্যতে বিভিন্ন ধরনের কাজে সহজেই ব্যবহার করা সম্ভব হবে বলে আশা করছেন গবেষকরা।এ জন্য আরো গবেষণার প্রয়োজন বলেও মত দিয়েছেন তাঁরা। প্রাথমিকভাবে এ প্রযুক্তির পরীক্ষামূলক সংস্করণের রোবট তৈরি করেছেন তাঁরা। যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর অ্যাডভান্স রিসার্চ প্রজেক্ট এজেন্সির অর্থায়নে এ গবেষণা চালানো হয়।
গবেষণাদলের সদস্য এমআইটির সেন্টার ফর বিটস অ্যান্ড অ্যাটমস বিভাগের প্রধান নিল গার্শেনফেল্ড জানান, ইলেকট্রো ম্যাগনেটের আদলে 'ইলেকট্রো-পারমানেন্ট' মোটর ব্যবহার করায় রোবটটি ভাঁজও করা যাবে। এ জন্য রোবটটিতে ব্যবহার করা হয়েছে শক্তিশালী চৌম্বকশক্তি। ফলে চৌম্বকশক্তির তারতম্যের কারণে রূপ বদলাবে রোবটটি।


(http://www.kalerkantho.com/admin/news_images/1083/image_1083_305306.jpg)

Ref: http://www.kalerkantho.com/?view=details&type=gold&data=Islam&pub_no=1083&cat_id=1&menu_id=61&news_type_id=1&index=2
Title: Communication bring success
Post by: Narayan on December 06, 2012, 02:34:18 PM
ফেসবুকের সিওও শেরিল স্যান্ডবার্গের জন্ম যুক্তরাষ্ট্রে ১৯৬৯ সালের ২৮ আগস্ট। ফেসবুকের আগে তিনি গুগলের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। ২০১২ সালের ২৫ মে হার্ভার্ড বিজনেস স্কুলে তিনি বক্তব্যটি দেন।

এখানে বক্তব্য দেওয়ার কথা যখন ডিন নোরিয়া আমাকে বললেন, আমি তখন ভাবলাম, আমার চেয়েও আশাবাদী কিছু তরুণের সামনে আমাকে কথা বলতে হবে। আমার অবশ্য তরুণদের সান্নিধ্য সব সময়ই পছন্দের। তবে মাঝেমধ্যে তারা যখন খুব অবাক হয়ে জানতে চায়, ইন্টারনেট ছাড়া আমরা আমাদের সময় কীভাবে পার করেছি, তখন আমি বিব্রত বোধ করি।
১৭ বছর আগে আমি এখানে (হার্ভার্ড বিজনেস স্কুল) পড়তাম। খুব বেশি দিন হয়নি, যখন আমি তোমাদের জায়গায় ছিলাম। কিন্তু এই অল্প দিনেই পৃথিবীটা অনেক বদলে গেছে। আমি ছিলাম সেকশন বি-তে। আমরা চেষ্টা করেছিলাম আমাদের শ্রেণীকক্ষকে হার্ভার্ড বিজনেস স্কুলের প্রথম অনলাইন শ্রেণীকক্ষে পরিণত করতে। আমরা একটি চ্যাটরুম ব্যবহার করতাম, যেখানে একটি ডায়াল সার্ভিস চালু ছিল। আমরা ছদ্মনামের একটা তালিকা তৈরি করতাম। কারণ, তখন ইন্টারনেটে আসল নাম ব্যবহারের প্রচলন ছিল না। আমাদের এই পদ্ধতি প্রায়ই ঠিকমতো কাজ করত না। কারণ, ওটা ৯০ জনের একসঙ্গে কাজ করার মতো উপযোগী ছিল না। কিন্তু তখন আমরা ঠিকই আঁচ করতে পেরেছিলাম এর সম্ভাবনাটা। আমরা বুঝতে পারতাম, ভবিষ্যৎটা এমন হবে, যেখানে প্রযুক্তি সহজেই আমাদের বন্ধু, পরিবার ও সহকর্মীদের সঙ্গে সহজেই যুক্ত করবে। একটা সময় ছিল, যখন শুধু খ্যাতিমান ও ক্ষমতাবান ব্যক্তিরাই নিজেদের অভিমত ব্যক্ত করতে পারতেন। এখন সময় বদলেছে। সাধারণ মানুষেরও এখন মতামত প্রকাশের জায়গা আছে। ফেসবুক ও টুইটার ব্যবহার করে যে কেউ এখন যেকোনো বিষয়ে আওয়াজ তুলতে পারছে। এটা বদলে দিচ্ছে ক্ষমতা বা কাজের গতানুগতিক ভাবনা। এখন ক্ষমতা প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায় থেকে ব্যক্তিপর্যায়ে এবং ক্ষমতাবানের হাত থেকে সাধারণ মানুষের হাতে পৌঁছে যাচ্ছে। মতামত এখন খুব দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে এক ক্ষেত্র থেকে অন্য ক্ষেত্রে।
ফেসবুকে যোগ দেওয়ার পর আমাকে এর ব্যবসায়িক দিকটাও দেখতে হতো। আমি চাইতাম ফেসবুকের নিজস্ব ধরনটাকে বাধাগ্রস্ত না করে আমার কাজ চালিয়ে যেতে। একজন উপযুক্ত নেতা বুঝতে পারেন, প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের সঙ্গে সব কর্মী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না। তাই নেতারই দায়িত্ব কর্মীদের কাজে উৎসাহিত করা।
তোমারা আজ গ্র্যাজুয়েট। নিজেকে একবার প্রশ্ন করো, তুমি কি সহজ-সরল ভাষায় কথা বলো? তুমি কি সততার খোঁজ করো? তখন তোমার প্রতিক্রিয়া কেমন হয়? যেহেতু যোগাযোগকে আরও সহজ করার জন্য আমরা চেষ্টা করি, সেহেতু অন্যান্য ক্ষেত্রেও আমাদের আরও বিশ্বস্ত হওয়ার চেষ্টা করতে হবে।
আমি কাজে বিশ্বাসী। যাদের সঙ্গে কাজ করি, তাদের গুরুত্ব দেওয়ার মাধ্যমেই আমার প্রেরণার সৃষ্টি হয়। যদি আমরা কাউকে গুরুত্ব দিতে চাই, তাহলে তাকে অবশ্যই ভালোভাবে জানতে হবে। আমি এটা বিশ্বাস করি না যে সোম থেকে শুক্রবার শুধু কাজ নিয়েই থাকব, নিজের জন্য শুধু বাকি দুই দিন ব্যবহার করব। কর্মক্ষেত্রকেও নিজের উপযোগী করে নিতে হবে। নিজের ভালো লাগা ও খারাপ লাগা অন্যদের সঙ্গে ভাগ করে নিতে হবে। এতে করে কর্মক্ষেত্রে কাজের একটা পরিবেশ সৃষ্টি হয়। মূল কথা হচ্ছে, তুমি যা, নিজেকে সেভাবেই উপস্থাপন করো।
সম্প্রতি আমি কর্মক্ষেত্রে নারীদের চ্যালেঞ্জ নিয়ে বেশ কিছু কথা বলেছি। একজন নারী হয়েও আমি আমার কাজ করেছি অন্য সবার মতোই। এটা কখনো বলো না, আমি মেয়ে। আমি এটা কখনো বলিনি। ১৯৯৫ সালে আমি যখন হার্ভার্ড বিজনেস স্কুল থেকে গ্র্যাজুয়েশন শেষ করি, তখন ভেবেছিলাম, আমাদের ব্যাচ থেকে কেউ একজন এই মঞ্চে দাঁড়িয়ে কথা বলবে। তবে সেদিন আমি আমার কথা মোটেও ভাবিনি।
আমরা কর্মক্ষেত্রে সমতা অর্জন করতে চাই। কিন্তু এ কথা স্বীকার করতেই হবে যে লিঙ্গবৈষম্য এখনো নেতৃত্বদানের কাজে নারীদের জন্য একটা বিশাল প্রতিবন্ধকতা। উচ্চপর্যায়ের কাজে নারীর সংখ্যা এখনো ১৫ থেকে ১৬ শতাংশে থেমে আছে। নারীদের সফলতাকে এখনো নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা হয়। তাই এটা বেশি খেয়াল রাখতে হবে, নারীরা যাতে নিজেদের ক্ষমতাকে অবমূল্যায়ন না করেন। নারীদের কাজে উৎসাহিত করতে হলে ভিন্নধর্মী শিক্ষা দিতে হবে, তাঁদের উৎসাহিত করতে হবে এবং প্রয়োজনে তাঁদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করতে হবে।
কয়েক সপ্তাহ আগে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলাম আমি বিকেল পাঁচটায় অফিস ছাড়ি, যাতে আমি আমার সন্তানদের নিয়ে একসঙ্গে রাতের খাবার খেতে পারি। আমি খুবই অবাক হয়েছি, যখন দেখলাম সংবাদপত্রগুলো এটা অনেক ফলাও করে প্রচার করেছে। আমার এক বন্ধু এতে মজা করে বলেছে যে আমি যদি কুঠার দিয়ে কাউকে হত্যা করতাম, তবুও হয়তো এত সংবাদের শিরোনাম হতে পারতাম না! এটাই প্রমাণ করে যে এই সমস্যাটা এখনো অমীমাংসিতই রয়ে গেছে নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যই। তা না হলে এ ব্যাপারে কেন এত লেখালেখি হবে? সবচেয়ে জরুরি হলো, কীভাবে মেয়েদের উচ্চপদের কাজগুলোর প্রতি উৎসাহিত করে তোলা যায় সেদিকে দৃষ্টি দেওয়া। যতক্ষণ পর্যন্ত আমরা নারী-পুরুষের আকাঙ্ক্ষার ব্যবধান ঘোচাতে পারব না, ততক্ষণ পর্যন্ত নেতৃত্বের ক্ষেত্রে তাদের অংশগ্রহণের ব্যবধান কমাতে পারব না। কয়েক সপ্তাহ আগে বার্নার্ড কলেজের সমাবর্তনে প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেছিলেন যে শুধু টেবিলে বসার জন্য নারীদের প্রয়োজন নয়, নারীরা এখানে তাদের সঠিক জায়গাটা করে নিক, তা-ই আমরা চাই।
তোমরা সহপাঠীরা কয়েক দিন পরই কাজের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়বে। কিন্তু নিজেদের মধ্যে যোগাযোগটা সব সময় রেখো।
সবশেষে তোমাদের আমি চারটি বিষয়ে কথা বলতে চাই:
 ফেসবুকের মাধ্যমে একটা যোগাযোগের ক্ষেত্র তৈরি কোরো।
 সব সময় সত্যের পথে চলবে।
 নিজের কাছে বিশ্বস্ত থাকবে।
 আমরা যা করতে পারিনি, আশা করি, তোমরাই তা অর্জন করবে। আমাদের এমন একটা পৃথিবী উপহার দেবে, যেখানে আমাদের অর্ধেক পরিবার পুরুষ দিয়ে এবং অর্ধেক প্রতিষ্ঠান নারী দিয়ে পরিচালিত হবে। আর এমনটা যদি বাস্তবায়ন সম্ভব হয়, তবে আমরা একটা সুন্দর পৃথিবীর সন্ধান পাব।
সবার জন্য রইল অনেক শুভেচ্ছা।


Courtesy: Prothom-alo
Title: Re: Heart Attack and Vitamin D
Post by: saratasneem on December 06, 2012, 04:06:07 PM
Anxiety free life is the prime medicine to prevent "Heart Attack".
Title: Re: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: saratasneem on December 06, 2012, 04:11:55 PM
Obviously.
Title: Re: ধূমপান: মিনিটেই দেহের ক্ষতি
Post by: saratasneem on December 06, 2012, 04:12:43 PM
No doubt.
Title: Synthetic Fuel Could Eliminate U.S. Need for Crude Oil, Researchers Say
Post by: tamim_saif on December 06, 2012, 06:48:16 PM
ScienceDaily (Dec. 2012)
(http://images.sciencedaily.com/2012/12/121205200216-large.jpg)

The United States could eliminate the need for crude oil by using a combination of coal, natural gas and non-food crops to make synthetic fuel, a team of Princeton researchers has found.
Title: First Evidence of Fish Sensing Geomagnetic Fields from a Czech Christmas Market
Post by: tamim_saif on December 06, 2012, 06:51:41 PM
ScienceDaily (Dec. 2012) —
(http://images.sciencedaily.com/2012/12/121205200057.jpg)
Carp stored in large tubs at Czech Christmas markets align themselves in the north-south direction, suggesting they possess a previously unknown capacity to perceive geomagnetic fields, according to a new study published December 5 in the open access journal PLOS ONE, led Hynek Burda from the University of Life Sciences (Prague), Czech Republic and colleagues from other institutions.
Title: Breath test could possibly diagnose colorectal cancer
Post by: tamim_saif on December 06, 2012, 06:53:07 PM
A new study published in the British Journal of Surgery (BJS) has demonstrated for the first time that a simple breath analysis could be used for colorectal cancer screening.
Title: Beat the common cold
Post by: tanbir on December 07, 2012, 01:47:49 AM
The common cold

The common cold is one of the most widespread and prevalent viral infections out there.

The immunity levels of the person play the most vital role in how frequently an individual contracts a cold. The trouble is that this infection is caused by so many viruses that it is not possible for our body’s immune system to develop immunity against each and every type of virus.

While there is no cure for the cold, there are some precautions and home remedies that can be very helpful in symptomatic relief.
Ease that cold – home remedies

Here are some simple home remedies that’ll help ease the symptoms of the common cold:
Lemon and honey - Lemon in warm water with one teaspoon of honey can be taken three times daily. Lemon increases the body’s resistance against the cold and its vitamin C content can be useful in washing out toxic components from the body and decreasing the duration of the disease.

Go for garlic - Garlic has antiseptic and antispasmodic properties. Boil 4 to 5 cloves of garlic in water and ingest the mixture three to four times daily. Garlic oil also helps in opening the respiratory passage. 3 to 4 drops of garlic oil mixed with 4 to 5 drops of onion can be very helpful in flushing all the toxic materials from the body, hence lowering the fever.

Ginger to the rescue - Ginger is an excellent remedy for the common cold. Boil it with water to make a decoction, which can be taken thrice daily, along with half a teaspoon of sugar. Add ginger to your tea for a soothing a delicious beverage.
Other tips to get over your cold

The best precaution you can take to avoid getting a cold is to eat a nutritious and healthy meal that enhances your immunity. It is better to avoid alcohol and cigarettes.

Use a towel or handkerchief while sneezing or coughing to check the spread of infection to others.

Avoid taking antibiotics, as they have no role in the treatment of these viral infections. They may weaken the body’s natural immunity and kill the healthy bacteria of the body, which will create a further favorable ground for the virus to multiply, with more virulence making the condition worse.

Drink lots of water and try to rest as much as possible. It is advised that when the acute symptoms of the disease are present, like soreness of throat, running nose, fever, chills, congestion of nasal passage etc., the food eaten should be light and diluted. After the acute symptoms are gone, go back to your normal well-balanced diet of seeds, nuts, cereals, grains vegetables and fruits. Avoid fish meat, cheese, and starchy foods.

Ref: http://sg.news.yahoo.com/aaah-choo-home-remedies-ease-common-cold-033046659.html
Title: Re: দুআ করার কয়েকটি আদব
Post by: rumman on December 07, 2012, 09:35:12 AM
(https://fbcdn-sphotos-a-a.akamaihd.net/hphotos-ak-ash3/c58.0.403.403/p403x403/14685_444467015616266_942434828_n.jpg)
Title: Arsenic & Lung
Post by: rumman on December 07, 2012, 10:42:45 AM
মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক মিশ্রিত পানি পানে এত দিন চর্মরোগ, মাথাব্যথা, ভুল বকা, ডায়রিয়াসহ নানা ধরনের অসুখের কথা শোনা যেত। এমনকি নিয়মিত এই বিষযুক্ত পানি দীর্ঘদিন ধরে পান করলে হৃদযন্ত্রের সমস্যা, স্ট্রোক, ক্যান্সারের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার কথাও জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আর্সেনিকের ক্ষতি নিয়ে গবেষণা এগিয়েছে আরো এক ধাপ। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা সুনির্দিষ্টভাবে জানিয়েছেন, গর্ভবতী নারীরা যদি আর্সেনিক মিশ্রিত পানি পান করেন তবে তাঁদের গর্ভের সন্তানও তাতে আক্রান্ত হয়। ওই সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর তীব্র শ্বাসকষ্টে ভোগার আশঙ্কা থাকে। এই নবজাতকের শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণের জন্য দায়ী মায়ের পান করা পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক। ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার (ইউডাব্লিউএ) গবেষকরা এই গবেষণা করেন।
ইউডাব্লিউয়ের পরিবেশগত স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষক ক্যাথরিন রামসি এই গবেষণাকে যুগান্তকারী অভিহিত করে বলেছেন, 'সবাই জানে, আর্সেনিকের ভেতর ক্যান্সার সৃষ্টির উপাদান যথেষ্ট মাত্রায় রয়েছে। তবে শরীরে পানিবাহিত এই খনিজ উপাদানটির মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি যে ফুসফুসের জন্যও ক্ষতিকর, এই গবেষণা সেটাই প্রমাণ করল।' তিনি আরো বলেন, 'এই গবেষণায় আমরা খুঁজে পেয়েছি, শ্বাসযন্ত্রের অস্বাভাবিক আচরণ ও গঠনগত ত্রুটি পরবর্তী জীবনে বড় ধরনের সমস্যা তৈরি করতে পারে। আমরা আরো দেখেছি, আর্সেনিকের মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি ফুসফুসে শ্লেষ্মার (মিউকাস) পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। স্বাভাবিক শ্বাস গ্রহণের ক্ষেত্রে এটি বাধার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।'
২০০৭ সালের এক গবেষণায় জানা গেছে, বিশ্বের ৭০টি দেশের ১৩ কোটি ৭০ লাখ মানুষ নিজেদের অজান্তেই আর্সেনিকদূষিত পানি পান করছে। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: shahida sultana shimu on December 07, 2012, 11:29:19 AM
Dear ma`am,
                    Hurray! it is a great news for the students of department of law.specially i would like to thanks our honorable Department Head Farhana Helal Mehtab ma`am for doing a great job.Really our ma`am is a real ideal person who enrich the department of law.It is our great achievement.


shahida sultana shimul
Title: Open Youtube Easily 100% working
Post by: Sultan Mahmud Sujon on December 08, 2012, 10:29:24 AM
Click here to dounload] (http://www.mediafire.com/?7fxg3ua6l2ul1x7)

এটি একটি জিপ ফাইল, এটাকে আনজিপ করুন।
এবার ফাইল টা আপনার C ড্রাইভের এই ডিরেক্টরি তে পেস্ট করুনঃ :  c\Windows\System32\drivers\etc
দেখবেন ফাইল রিপ্লেস করার জন্য এডমিন পারমিশন চাইবে। পারমিশন দিন এবং ওকে করে বেড়িয়ে আসুন।
এর পরের কাজটা একটু ঝামেলার...
প্রথমে আপনার ব্রাউজার ওপেন করুন।
এড্রেস বারে লিখুন http://www.youtube.com or https://www.youtube.com


কাজ হলে কমেন্ট করুন[/size]
Title: Life style change of Sokhina
Post by: Md. Khairul Bashar on December 08, 2012, 11:25:39 AM
নিতান্ত দরিদ্র একটি পরিবার। টাকার অভাবে ভালো একটি শাড়িও কেনা হয়নি কখনো। হঠাৎ একদিন স্বামী আবদুল মজিদের কাছে একটি গাভি কিনে আনার আবদার করেন সখিনা। একটি গাভি থেকে দুটি। দুটি থেকে চারটি। এভাবে বাড়তে বাড়তে এখন ৮৪টি গরুর মালিক এই দম্পতি। গড়ে তুলেছেন বিশাল দুগ্ধ খামার।

সখিনা-মজিদ দম্পতির বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার কাবিলপুর গ্রামে। তাঁদের অভাবের সংসার এখন সুখ আর প্রাচুর্যে ভরপুর। বলতে গেলে শূন্য হাতে শুরু করে আজ তাঁরা সাফল্যের শিখরে উঠেছেন। পরিশ্রম আর সংগ্রাম করে সখিনা শুধু নিজের সংসারেই স্বচ্ছলতা আনেননি, পাশাপাশি গ্রামের অন্যদেরও গাভি পালনে উৎসাহিত করে স্বাবলম্বী হওয়ার পথ দেখিয়েছেন। কাবিলপুর থেকে খামার-বিপ্লব ছড়িয়ে পড়েছে সোনাতলা উপজেলার আশপাশের গ্রামগুলোয়।সখিনা বেগম সোনাতলার জীবনপুর গ্রামের আবদুল করিম শেখের মেয়ে। ১৯৮২ সালে একই উপজেলার কাবিলপুর গ্রামের আবদুল মজিদের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। স্বল্পশিক্ষিত স্বামীর তখন আয়-রোজগার ছিল না। অভাবের কাছে হার মানেননি সখিনা। কিছু একটা করার সংকল্প নিয়ে বাবার দেওয়া সোনার বালা ৫০০ টাকায় বিক্রি করে এ অর্থ তুলে দেন স্বামীর হাতে। স্বামী শুরু করেন হাটে হাটে ধান কেনার ব্যবসা। কয়েক বছর পর সখিনাকে একটি গাভি কিনে দেন মজিদ। সেই একটি গাভিই তাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে। সখিনা গড়ে তুলেছেন দুগ্ধ খামার। ওই খামারের নাম ‘সখিনা ডেইরি খামার’। ২০০০ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

যেভাবে শুরু: বাইসাইকেলে চড়ে গ্রামের হাটবাজারে গিয়ে ধান ও চালের ব্যবসা করতেন মজিদ। সখিনা একদিন আবদার করলেন, ধান ভাঙার পর তুষ ও চালের কুঁড়া থেকে যায়। একটা গাভি থাকলে এসব খাওয়ানো যেত। মজিদ বলেন, ‘সখিনা বিয়ের পর কোনো কিছুরই আবদার করেনি। এত দিন পর একটা গাভি চেয়েছে। সালটা ১৯৯৮ হবে। পাশের নামাজখালী গ্রামে গিয়ে সুভাষ ঘোষ নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ১৬ হাজার টাকায় একটি বিদেশি গাভি কিনে বাড়িতে নিয়ে আসি। সেই যে শুরু, তারপর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।’দুগ্ধ খামারে একদিন: বগুড়া শহর থেকে ৩৬ কিলোমিটার দূরে কাবিলপুর গ্রাম। সখিনার পাকা বাড়ির পাশেই প্রায় ৪০ শতাংশ জায়গাজুড়ে বিশাল দুগ্ধ খামার।

সখিনা জানান, দুধেল গাভির মধ্যে ২০টি ফ্রিজিয়ান, ২০টি শাহিওয়াল ও পাঁচটি জার্সি জাতের। ফ্রিজিয়ান জাতের গাভি ৩০ লিটার পর্যন্ত দুধ দেয়। দুগ্ধ খামারে কোনো এঁড়ে বাছুর রাখেন না তিনি। দুধ দেওয়া শেষ হলেই তা বিক্রি করে দেন। যে গাভি দিয়ে খামার শুরু করেছিলেন, সেটিও রয়েছে খামারে। সখিনা-মজিদ দম্পতি গাভিটিকে আদর করে ‘লক্ষ্মী’ বলে ডাকেন। খামারের একপাশে বায়োগ্যাস প্লান্ট; অন্যপাশে কয়েক বিঘাজুড়ে লাগানো হয়েছে খামারের গাভির খাবারের জন্য নিপিয়ার ঘাস।

ভাগ্যবদলের উপাখ্যান: সখিনা বলেন, ‘আমাদের এক শতাংশ জমিও ছিল না। প্রথমে খামারের জন্য ৪০ শতাংশ জায়গা কিনেছি। কয়েক লাখ টাকা খরচ করে খামারে তিনটি শেড দিয়েছি। শেডগুলোর মেঝেতে ইট বিছিয়েছি। পানি সরবরাহের জন্য বৈদ্যুতিক মোটর কিনেছি। প্রতিটি শেডে বৈদ্যুতিক পাখা লাগিয়েছি। খামারের আয় দিয়ে পাঁচ বিঘা আবাদি জমি কিনেছি। আরও পাঁচ বিঘা জমি বন্ধক নিয়েছি।’সখিনা আরও জানান, খামারে এখন কোটি টাকার গরু রয়েছে। চালের ব্যবসায় প্রায় পাঁচ লাখ টাকার পুঁজি খাটছে। বড় ছেলে শাহাদত হোসেন বগুড়া আজিজুল হক কলেজে মাস্টার্সে পড়ছেন। ছোট ছেলে আজাদ হোসেন ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতায় স্নাতক (সম্মান) পর্যায়ে লেখাপড়া করছেন।

আয়-ব্যয়: খামারের আয়-ব্যয়ের হিসাব রাখেন মজিদ। তিনি জানান, বর্তমানে ২৫টি গাভি দুধ দিচ্ছে। এসব গাভি থেকে দিনে গড়ে ৪০০ লিটার দুধ পাওয়া যাচ্ছে। প্রতি লিটার দুধ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে। সেই হিসাবে প্রতিদিন দুধ বিক্রি থেকে আয় হয় ১৬ হাজার টাকা। খাদ্য আর শ্রমিকের মজুরি বাবদ খামারে প্রতিদিন ব্যয় প্রায় চার হাজার টাকা। দুধ দোহানোর পর খামারের শ্রমিকেরা তা উপজেলা সদরের ব্র্যাক ডেইরি ও প্রাণের সংগ্রহকেন্দ্রে পৌঁছে দিচ্ছেন।

এলাকায় খামার-বিপ্লব: সখিনার সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে সোনাতলা উপজেলায় অনেকেই দুগ্ধ খামার করেছেন। কাবিলপুরের জাকির হোসেন, আবদুল হামিদ; রানীরপাড়ার পিন্টু মিয়া, শফিকুল ইসলাম; গড়চৈতন্যপুরের লতিফ খলিফা; সোনাতলা বন্দরের সোনা মিয়া, সিরাজুল ইসলামসহ অনেকেই এখন সফল দুগ্ধখামারি। প্রতিদিনই লোকজন আসেন সখিনা-মজিদ দম্পতির কাছে খামার সম্পর্কে নানা পরামর্শ নিতে। এই দম্পতির পরামর্শ নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এখন ৬৫টি দুগ্ধ খামার গড়ে উঠেছে।

অন্যরা যা বলেন: উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, সখিনা-মজিদ দম্পতি ডেইরি খামার গড়ে তোলার মাধ্যমে এলাকার দুধ ও মাংসের চাহিদা পূরণ করছেন। তাঁরা নিজেদের ভাগ্যবদলের পাশাপাশি অন্যদের খামার গড়ার পরামর্শ দিয়ে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে অবদান রাখছেন।উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়ব জাকির বলেন, ‘সখিনা-মজিদ দম্পতিকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। তাঁদের সংসারে একসময় খুব অভাব-অনটন ছিল। গাভির খামার তাঁদের ভাগ্য বদলে দিয়েছে।’


সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-07/news/311274
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: Md. Khairul Bashar on December 08, 2012, 11:53:51 AM
Its really a great achievement for DIU, specially for the Department of Law. Special thanks to Madam (Head, Dept. of Law) for choosing such historical date for starting DMCS’s activities. Best wishes for “Daffodil Moot Court Society”.
Title: Invention of Plastic bulb
Post by: Md. Khairul Bashar on December 08, 2012, 11:58:30 AM
প্রযুক্তির এক নতুন জাদু আবিষ্কার হয়েছে। জাদু প্লাস্টিক থেকেও নাকি আলোর জেল্লা বেরুবে। কোন গালগল্প নয়, এমন দাবিই করলেন বিজ্ঞানীরা। যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানী ড. ডেভিড ক্যারোল বর্তমানে প্রচলিত ইলেকট্রিক বাল্বের চেয়ে উন্নত প্রযুক্তির বাল্ব উদ্ভাবনের কথা জানিয়েছেন। প্লাস্টিকের কয়েকটি লেয়ারের সমন্বয়ে তৈরি নতুন বাল্বটি ফ্লুরোসেন্ট বাল্বের চেয়ে দ্বিগুণ কার্যক্ষম বলে দাবি করেছেন উদ্ভাবকরা। প্লাস্টিক বাল্বটির আবিষ্কারক ড. ক্যারোল ক্যালিফোর্নিয়ার ওয়েক ফরেস্ট ইউনিভার্সিটির পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক। তিনি বলেন, বাল্বটি যে কোন আকারে বানানো সম্ভব এবং বর্তমানে জনপ্রিয় কম্প্যাক্ট ফ্লুরোসেন্ট বাল্বের (সিইউএফএ) তুলনায় এটি বেশি উজ্জ্বল ও কম্পনবিহীন। সিইউএফএল বাল্ব মানুষের চোখের উপযোগী নয়। এর কম্পনের কারণে অনেকে মাথাব্যথায় ভোগেন। নতুন আবিষ্কৃত ফিল্ড-ইনডিউস্ড পলিমার ইলেক্ট্রোলিউমিনেসেন্ট (ফিপেল) টেকনোলজিতে তৈরি বাল্বটির হোয়াইট-এমিটিং পলিমারের তিনটি স্তরের ভেতরের ন্যানোম্যাটেরিয়াল দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হলে তা আলো উৎপাদন করে।


সূত্রঃ http://www.dailyinqilab.com/details_news.php?id=93914&&%20page_id=%206
Title: Best living city is Viena
Post by: Md. Khairul Bashar on December 08, 2012, 12:39:05 PM
বিশ্বের বসবাসযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থবারের মতো শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনা। এ তালিকার সবচেয়ে নিচের অবস্থানে রয়েছে ইরাকের রাজধানী বাগদাদ। সমপ্রতি এ তালিকা প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা মার্সার। ১৭ লাখ বাসিন্দার জন্য সমন্বিত স্বাস্থ্য সেবাসহ সবচেয়ে বেশি সুযোগ-সুবিধা দিয়ে আসছে প্রাচীন ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির ধারক শহর ভিয়েনা। হ্যাবসবার্গ শাসনামলের ঐশ্বর্যমণ্ডিত বিভিন্ন স্থাপনা শহরটিকে পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত করেছে।

যদিও সামপ্রতিক সময়ে ভিয়েনা শহরে বাসস্থান ব্যয় কিছুটা বেড়ে গেছে, তবে শহরের মধ্যে যাতায়াতের জন্য দৈনিক ব্যয় হয় মাত্র ১ ইউরো। সারা বছরের জন্য পাসের মাধ্যমে এ যাতায়াত ব্যবস্থা পরিচালিত হয়। নিজ শহরের রাস্তাঘাটে নিরাপত্তা ব্যবস্থা, গাড়ি পার্কিংয়ের সুলভ ব্যবস্থা এবং বনায়নের প্রশংসাও করেন ভিয়েনার বাসিন্দা ২৪ বছর বয়সী শিক্ষার্থী আনা স্টারিবাকার।

বিশ্বের শহরগুলোর রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষাব্যবস্থা, অপরাধ প্রবণতা, বিনোদন ও যাতায়াত ব্যবস্থাসহ ৩৯টি সূচকের ভিত্তিতে প্রতিবছর বিশ্বের সবচেয়ে বসবাসযোগ্য শহরের তালিকা প্রস্তুত করে থাকে জরিপ প্রতিষ্ঠান মার্সার। সারা ইউরোপ জুড়ে অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও ২০১২ সালের জরিপে ইউরোপের ১৫টি শহর রয়েছে তালিকার উপরের দিকে। শীর্ষ ১০ শহরের মধ্যে রয়েছে জার্মানি ও সুইজারল্যান্ডের তিনটি করে শহর। সুইজারল্যান্ডের জুরিখ দ্বিতীয়, জেনেভা অষ্টম এবং বার্ন দশম স্থানে রয়েছে। জার্মানির মিউনিখ চতুর্থ, ডাসেলডর্ফ ষষ্ঠ ও ফ্রাঙ্কফুট অষ্টম অবস্থানে রয়েছে। ইউরোপের শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে নিচের অবস্থানে রয়েছে গ্রিসের রাজধানী এথেন্স।


সূত্রঃ http://www.ittefaq.com.bd/index.php?ref=MjBfMTJfMDhfMTJfMV83XzFfMjA2OQ==
Title: Re: 'ধূমপানের কারণে এ বছর মৃত্যুবরণ করবে ৬০ লাõ
Post by: saratasneem on December 08, 2012, 02:59:58 PM
Disappointing news.
Title: Re: Open Youtube Easily 100% working
Post by: sazirul on December 08, 2012, 08:22:01 PM
Thanks, it's working.  :)
Title: costing technique in clothing industry
Post by: MEGH on December 09, 2012, 12:01:05 AM
In order to achieve perfect garment costing, one must know about all the activities including purchase of fabrics, sewing, packing, transport, overheads, etc and also about their costs, procedures, advantages and risk factors, advocates C Vigneswaran.
The Indian textile and apparel industry is very large and diverse, employing 35 million people and accounting for 27 per cent of the country's exports. The apparel industry plays a pivotal role as a key driver of the national economy and has grown to be the most significant contributor to the country's economy over nearly three decades of its existence. However, during last 10 years, the industry's actions, government policies as well as market events have begun to converge, providing several growth opportunities for the sector domestically as well as in the global market.
As the MFA quota-regime ended, India presented many opportunities for buyers, suppliers and investors to collaborate with its textile industry, and to profit from the partnership. While the industry recorded a remarkable growth in a protected market environment, it faces a series of challenges that have come to the fore in the post-quota situation, notably in areas such as:
   Price competitiveness.
   Faster lead times.
   High raw material base.
   Full service offering.
   Access to market. "A Cost is the value of economic resources used as a result of producing or doing the things costed".
Garments costing
There are two types of garments, namely woven and knitted garments. Shirt, trouser, sarees, bed spreads, blankets, towels and made ups are woven. T-shirts, sweaters, undergarments, pyjamas and socks are knits.
Costing is the deciding factor for fixing of prices and the important thing to follow in all stages like purchase, production, marketing, sales, etc. Also update knowledge about everything related to garments, is essential to make perfect costing.
Costing includes all the activities like purchase of fabrics and accessories, processing and finishing of fabrics, sewing and packing of garments, transport and conveyance, shipping, over heads, banking charges and commissions, etc.
We must be aware that there are always fluctuations in the costs of raw materials and accessories, charges of knitting, processing, finishing, sewing and packing, charges of transport and conveyance. The method of making costing will vary from style to style. As there are many different styles in garments. Hence let us take men's basic T-shirt style as example which is in regular in use.
To find out the costing of a garment, the following things should things be calcuated:
   Fabric consumption.
   Gross weight of other components of garment.
   Fabric cost per kg.
   Fabric cost per garment.
   Other charges (print, embroidery, etc).
   Cost of trims (labels, tags, badges, twill tapes, buttons, bows, etc).
   CMT charges.
   Cost of accessories (hangers, inner boards, polybags, cartons, etc).
   Cost of a garment.
   Price of a garment.
Fabric consumption
The garments manufactured in many sizes to fit for everybody. Generally they are in sizes Small (S), Medium (M), Large (L), Extra large (XL) and Double Extra Large (XXL). The quantity ratio or assortment can be any one of the following approximate ratio.
S: M: L: XL: XXL - 1:2:2:2:1
S: M: L: XL: XXL - 1:2:1:2:1
S: M: L: XL: XXL - 1:2:3:2:2
As the price is the same for all these sizes of garments, the author have taken the centre size large(L) for average calculation. Generally, the quantity of L size will be higher or equal to the quantity of each of other sizes.
Men's Basic T-shirt
Description: Men's Basic T-shirt-short sleeves- 100% Cotton 140 GSM Single jersey - 1 x 1 ribs at neck - solid dyed - light, medium and dark colours in equal ratio.
Sizes: S, M, L, XL, XXL Ratio: 1: 2: 2: 2: 1
Export carton: 7 ply -120 GSM virgin corrugated - sea worthy. Cartons are to be strapped with 2 nylon straps.
Measurements in cm: (Finished garment)
Size: L
Chest - 60 cm
Length - 78 cm
Sleeve length - 24 cm
Neck rib width - 3 cm Hem - 3 cm
Patterns are generally made with the seam allowance and cutting allowance. Generally, 12 cm is added with the total of body length and sleeve length.
That is,
Fabric consumption =(Body length + Sleeve length + allowance) * (Chest + allowance) * 2 * GSM
                                                                                             10000
 = (70 + 24 + 12) * (60 + 3) * 2 * 140
                           10000
= 187 grams
Body & Sleeves : 187 grams
Neck rib : 10 grams (approximately)
Gross weight : 197 grams Therefore, the fabric consumption per garment is 197 grams.
Gross weight & net weight

The above weight is the gross weight of fabric. It means the weight of the fabric bits cut in tubular form without taking shapes is called gross weight. This is the consumed fabric for the particular garment. Hence costing is to be made as per this gross weight. The weight of the cut pieces after taking the shape according to the pattern is called net weight of fabric.
Fabric cost per kg (in Rs) (all charges approximately)
Cost of fabric per kg is calculated and given in
Particulars   Light colours   Medium colours   Dark colours
34's combed yarn   Rs.135.00    Rs.135.00    Rs.135.00
Knitting charge    Rs.8.00    Rs.8.00    Rs.8.00
Dyeing charge    Rs.35.00    Rs.45.00    Rs.55.00
Compacting charge    Rs.6.00    Rs.6.00    Rs.6.00
Fabric wastage @ 5%    Rs.9.20    Rs.9.70    Rs.10.70
Fabric cost per kg    Rs.193.20    Rs.203.70    Rs.224.70
Fabric consumption per garment    197 gms    197 gms    197 gms
Fabric cost per garment    Rs.38.06    Rs.40.13    Rs.44.27
 
Cost of trims
The accessories which are attached to the garments are called Trims.
Now the author have taken Men's Basic T-shirts, as example. Let us see what are the trims required for this style.
Labels: Woven main label (2.5 cm width x 7 cm length): Rs 0.35
Polyester printed wash care label: Single colour print: Rs 0.10
Hang tag: Rs 0.40
So the total cost of trims is Rs 0.85 per garment.

Cost of accessories:
Polybags: Normal - Rs 0.30 per garment
Master Polybag: Rs 2 per master polybags to contain 8 garments - Rs 0.25 per garment.
Export carton: Normal: Rs 40 per carton to contain 48 garments - Rs 0.80 per garment.
So the total cost of accessories is Rs 1.35 per garment.
 
Garment costing
Now we at last have to take the step to find out the freight charges for the Men's Basic T-shirt. Price of garment estimation is given in Table 2.
Table 2: The freight charges for the Men's Basic T-shirt. Price of garment estimation is given
Particulars   Light colours   Medium colours   Dark colours
34's combed yarn   Rs.135.00    Rs.135.00    Rs.135.00
Fabric cost per garment    Rs.38.06    Rs.40.13    Rs.44.27
Cost of Trims    Rs.0.85    Rs.0.85    Rs.0.85
CMT Charges    Rs.11.00    Rs.11.00    Rs.11.00
Cost of accessories    Rs.1.35    Rs.1.35    Rs.1.35
Rejection of garments (commonly 3%)    Rs.1.50    Rs.1.50    Rs.1.50
Cost of Garment    Rs.52.76    Rs.54.83    Rs.58.97
Local Transport    Rs.1.00     Rs.1.00    Rs.1.00
Profit@15% appro.    Rs.7.90    Rs.8.20    Rs.8.90
Commission/ pc     Rs.2.00    Rs.2.00    Rs.2.00
Price of Garment    Rs.63.66    Rs.66.03    Rs.70.87

Shipping charges
For men's basic T-shirt, the delivery terms in the buyer enquiry as 'FOB'. So sea freight charges is not added. But the local transport with the cost of garment has to be added. Finally, we have to convert the Indian rupee value to USD or Euro.

Source:
Note: For detailed version of this article please refer the print version of The Indian Textile Journal May 2009 issue.
C Vigneswaran.
Lecturer, Daprtment of Textile of Fashion Technology,
PSG College of Technology,
Coimbatore 641 004.

Title: How do calculate the yarn consumption of a Yarn dyed t-shirt?
Post by: MEGH on December 09, 2012, 12:04:45 AM
Suppose, you receive a yarn dyed t-shirt order from buyer. Details as below

Style: 100% cotton, Single jersey, 160 gsm yarn dyed round neck t-shirt.
Color:  Beige/Navy (only one combo)
Quantity: 10,000 pcs (in four sizes, S, M, L & XL)
Stripe: Beige 7 cm & Navy 1.5 cm (Total 8.5 cm)
 


Body length: 73 cm
Sleeve length: 19.5 cm
½ Chest: 52 cm

Consumption: 2.78 kgs/dozen (considering total wastage 18%) you may use this for pricing. Normally the wastage of yarn dyed garments depends on styling. 
Normal wastage for yarn dyed:
Dyeing (yarn) wastage: 6%
Knitting wastage: 3%
Wash wastage: 5%
So, you should need 116 kgs yarn to produce 100 kgs fabric

But be careful, during the bulk yarn booking you should booked the yarn based on the consumption you got by using pattern & marka. Some time I saw buyer asked for match the body stripe with sleeve then the cutting wastage become more than 5%.

We know the body length is 73 cm
Where, beige color stripe is 7 cm
And Navy color stripe is 1.5 cm
Then total length of one repetition is 8.5 cm
So, we need total (73/8.5) = 8.58824 repletion to complete a body (but here we will count 9 repetition for cutting & sewing wastage.)

So, total sum of Navy stripe will be (1.5 cm X 8.58824) = 12.8824 cm
And total sum of Beige color stripe will be (7 cm X 8.58824) = 60.1177 cm
So, 12.8824 cm + 60.1177 cm = 73 cm (total body length)

Now we just calculate the percentage of each color in a body

Navy color percentage in the body will be

= (12.8824 ÷ 73) %
= 17.65 %

= (60.1177÷73) %
= 82.35 %

= 17.65 + 82.35

= 100 %

So, now if the consumption is 2.78 kg

Then

Navy color will be = 0.49067 kg ( 2.78 kg X 17.65% )
And Beige color will be = 2.28933 kg ( 2.78 kg X 82.35% )

In this above way you can booked the yarn

Hope everything is clear to all.
Title: What is a Bottleneck ?
Post by: MEGH on December 09, 2012, 12:15:46 AM
A bottleneck in a process occurs when input comes in faster than the next step can use it to create output. The term compares assets (information, materials, products, man-hours) with water. When water is poured out of a bottle, it has to pass through the bottle's neck, or opening. The wider the bottle's neck, the more water (input/assets) you can pour out. The smaller, or narrower, the bottle's neck, the less you can pour out – and you end up with a back-up, or "bottleneck."
There are two main types of bottlenecks:
1.   Short-term bottlenecks – These are caused by temporary problems. A good example is when key team members become ill or go on vacation. No one else is qualified to take over their projects, which causes a backlog in their work until they return.
2.   Long-term bottlenecks – These occur all the time. An example would be when a company's month-end reporting process is delayed every month, because one person has to complete a series of time-consuming tasks – and he can't even start until he has the final month-end figures.
Identifying and fixing bottlenecks is highly important. They can cause a lot of problems in terms of lost revenue, dissatisfied customers, wasted time, poor-quality products or services, and high stress in team members.
How to Identify Bottlenecks
Identifying bottlenecks in manufacturing is usually pretty easy. On an assembly line, you see when products pile up at a certain point. In business processes, however, they can be harder to find.
Start with yourself. Is there a routine or situation that regularly causes stress in your day? These frustrations can actually be a significant indicator that a bottleneck exists somewhere.
For example, imagine that you're responsible for reviewing a report that another team member creates each week. Once you're done, you give it to another team member, who has to post the report on your company's intranet. Due to your workload, however, the report often sits on your desk for hours – so the next person down the line sometimes has to stay later at the end of the day to post it on time. This causes a lot of stress for you as well as your colleague. In this scenario, you're the bottleneck.
Here are some other signs of bottlenecks:
•   Long wait times – For example, your work is delayed because you're waiting for a product, a report, or more information. Or materials spend time waiting between steps of a business or manufacturing process.
•   Backlogged work – There's too much work piled up at one end, and not enough at the other end.
•   High stress levels.
Two tools are useful in helping you identify bottlenecks:
1. Flow Charts:
Use a flow chart to help you identify where bottlenecks are occurring. Flow charts break down a system by detailing every step in the process in an easy-to-follow diagrammatic flow. Once you map out a process, it's much easier to see where there might be a problem. Sit down and identify each step that your process needs to function well.
For example, in the trucking scenario we mentioned earlier, a flow chart might look like this:
•   Step 1 – Goods are manufactured at the factory.
•   Step 2 – Goods are loaded onto the truck.
•   Step 3 – The warehouse is notified about the truck's arrival time.
•   Step 4 – The warehouse schedules a forklift for the expected arrival time.
•   Step 5 – The truck arrives at the warehouse, and unloading starts.
In this case, the delay occurred because Steps 3 and 4 were missing, and this led to a long wait between Steps 2 and 5. Creating the flow chart before investigating the problem would have helped you quickly see where your process broke down.
Title: Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy
Post by: Arif Ahsan on December 09, 2012, 10:03:45 AM
"Brand is not just a logo. there must be concerted efforts from public and private sectors to articulate a proper branding strategy"-according to the recommendations of the two day international conference on positioning Bangladesh: Branding for Business at Sonargaon Hotel in Dhaka on December 7, 2012.


In marketing we recognize brand for a particular product or services. But if we think about a nation's branding then it should be the macro and micro level development in all areas of an economy. Development of the economy automatically creates brand image in the foreign market. To create the brand image of Bangladesh we have to take few steps. In this conference there were few recommendations:

1. The country should fully exploit the young, dynamic, hard working and entrepreneurial labour force, which is seen as the biggest resource to take the economy to the desired destination.
2. Investment in branding must focus on long term benefits.
3. Bangladesh should focus on IT and IT enabled services. Policies should be auspicious to encourage this competitive sector.
4. Crop insurance should be introduced to save farmers in grey days.

So, we have to think, plan, implement for long term sustainability of our economy that will help us to create brand image in the other side of the world. If we fail to do so we will not be able to compete and stay behind like an unknown brand.

Arif Ahsan
Lecturer
Dept. of Business Administration
Faculty of Business & Economics
Title: Re: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: fernaz on December 09, 2012, 03:35:37 PM
true...... Exercise should be must for every person.......
Title: Re: Heart Attack and Vitamin D
Post by: fernaz on December 09, 2012, 03:37:25 PM
Which fruits contain vitamin D?
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: riaduzzaman on December 11, 2012, 01:54:31 PM
Dear Ma'am,
Thank you very much for introducing such an innovative and time-needed 'society' at DIU. I strongly believe this will bring professionalism and real court adaptability to our lovely law students. I think it is time to modify our advertisement at DIU website(for law) to attract more brilliant pupils specially focusing “Daffodil Moot Court Society”. Also we can post the picture of our moot court room. 

Yours faithfully
Md.Riaduzzaman
Title: Re: Heart Attack and Vitamin D
Post by: rumman on December 11, 2012, 05:45:54 PM
It is naturally found mainly in fish oils, fatty fish, and to a lesser extent in beef liver, cheese, egg yolks, and certain mushrooms. Cod Liver Oil, Fortified Cereals, Oysters, Caviar (Black and Red), Fortified Soy Products (Tofu and Soy Milk), Salami, Ham, and Sausages, Fortified Dairy Products Vitamin D is also naturally made by your body when you expose your skin to the sun, and thus, is called the sun-shine vitamin. In addition, vitamin D is widely added to many foods such as milk and orange juice, and can also simply be consumed as a supplement.

Title: Re: ভাসমান শেয়ার বক্স তৈরি করুন আপনার সাইটের
Post by: sazirul on December 14, 2012, 03:42:30 PM
Relay, I was looking for something like that for my website.
Thanks for sharing. :)
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: Farhana Helal Mehtab on December 18, 2012, 10:00:42 AM
Thank you dear Md. Khairul Bashar,  Riaduzzaman & shahida sultana shimu for your positive comments. We have some good plans for Daffodil Moot Court Society..... please keep me & our work in your prayer.

Warm regards,
Ma'am
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: zr.rajib8 on December 19, 2012, 08:55:43 PM
We are happy to listen that the "Moot Court Society" as an organization of Law Department is being approved.
Special thanks  to the Honorable "Head" of the "Department of Law"  for making this society possible & real. As a student of the Department of Law, I feel proud to have such "Moot Court Society".
All the best...........
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: asraful on December 22, 2012, 05:47:46 PM
Thanks god for achievement our Daffodial moot court society and specially thanks my honorable head ma'am who established this society.
Title: Re: “Daffodil Moot Court Society”
Post by: Farhana Helal Mehtab on December 23, 2012, 10:10:50 AM
Thank you all for the wishes & prayer. This is the first semester in DIU Law when we've started "Moot Court & Debating" class in a practical way; this is a 3 credit compulsory course . Basically this class consists of batch 4,5,6. Some of the students' last semester! I'm going to miss them in class. And hope including the students of Moot Court & Debating class, all the bright students of Law dept will work together for “Daffodil Moot Court Society” . Dear students, at the same time I'll suggest you to be the member of Daffodil International Debating Club (DIUDC). I always say a law student should be a good debater. Prove yourself!

Special thanks for using the forum.....to my dear colleague & younger brother Riaduzzaman, fhss dean's coordination officer  Md. Khairul Bashar (who helped me with the application just at the day of dean's meeting) my loving students Asraful, Rajb & Shimu.
All the best.

Ma'am
Title: Re: Smoking and Die
Post by: tanzina_diu on December 31, 2012, 03:54:52 PM
Hope, people will be cautious reading this information
Title: Re: Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy
Post by: saratasneem on January 03, 2013, 11:06:42 AM
We can remember the eye-catching product "Muslin". The history tells us that  this particular product introduced the Indian sub continent to the rest of the world(particularly Europe) . Tourists were used to visit the continent & purchase muslin. When the tourists went back to home, they were asked about the pros and cons of the item.  Gradually businessmen from Europe became interested to  come here to make an arrangement of trade. After the arrival of businessmen particularly from England what was happened, all of us know very clearly. I think the absence of integrated policy was one of the prime reasons of British exploitation.

                          Now-a-days, for branding any country economic development is a precondition. I agree with the above mentioned suggestions. But I want to add something. The following tips can be followed:

                                                     1. Recurring strikes should be stopped.

                                                     2. Product quality should be improved(for some products).

                                                     3. Be honest in business.

                                                     4. Private  sector should be prioritized.   

                                                   



             
Title: Re: Beat the common cold
Post by: shan_chydiu on January 03, 2013, 04:01:22 PM
Helpful information.
Title: Re: Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy
Post by: goodboy on January 03, 2013, 04:11:14 PM
Thank you so much mr. Arif sir!!
Your opinion regarding this are really suggestive & have the options for proper implementation & guidance!!!

I agree with you!
Title: Re: আসছে নতুন প্রজন্মের জিপিএস ৩
Post by: arefin on January 04, 2013, 05:06:09 PM
Thanks for the post. Hopefully Bangladesh will implement GPS soon. It will reduce lots of crime. 
Title: Re: Smoking and Die
Post by: irina on January 07, 2013, 12:18:12 PM
If we keep in mind the 'Tik.. tok' sound of the Death-watch hanging before us and the responsibilities we are to perform then I think we will not touch the deadly thing.
Title: Re: Grande Ravine Bridge...................Reunion Island, France.
Post by: sethy on January 11, 2013, 01:14:45 PM
great job. really awesome
Title: Re: Grande Ravine Bridge...................Reunion Island, France.
Post by: Emran Hossain on January 12, 2013, 09:28:48 AM
Thank for this information,

Excellent sights, Mind it ,its create our Allah Sobhan Watala. So pray to Allah Sobhan Watala for his blessing.
Title: Re: International Cricket Schedule: December 01 to December 10, 2012
Post by: sumon_acce on January 24, 2013, 05:20:39 PM
Pease post the match schedule of february, 2013.
Title: Re: Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy
Post by: Arif Ahsan on January 27, 2013, 05:21:43 PM
I agree with Sarah madam. We have to improve the quality of product and stop strikes.
Title: Re: How to setup .NET Framework 3.5 in Windows 8
Post by: Sultan Mahmud Sujon on February 06, 2013, 08:30:21 AM
thanks, woking
Title: Re: Pain killer increase pain
Post by: nayeemfaruqui on February 19, 2013, 05:05:08 PM
Informative..
Title: Re: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহ
Post by: nayeemfaruqui on February 19, 2013, 05:06:42 PM
Good post...
Title: Re: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহ
Post by: Tajmary on February 19, 2013, 10:51:27 PM
Nice post..
Title: Re: Pain killer increase pain
Post by: Tajmary on February 19, 2013, 10:52:03 PM
Good one..
Title: Re: Pain killer increase pain
Post by: tany on February 19, 2013, 11:40:17 PM
good post..
Title: Re: ‘ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়াম আয়ু বাড়াতে সহ
Post by: tany on February 19, 2013, 11:40:58 PM
good one...
Title: Re: Rise in sea water level, Polar ice
Post by: nayeemfaruqui on February 20, 2013, 02:33:13 PM
Informative..
Title: Re: Beat the common cold
Post by: tany on February 20, 2013, 05:27:33 PM
Informative post...
Title: Re: Childhood punishment & depression
Post by: tany on February 20, 2013, 05:38:21 PM
Useful post..
Title: Re: Bangladesh & Terrorism
Post by: tany on February 20, 2013, 05:39:19 PM
Nice post ..
Title: Re: Pilot less Aircraft
Post by: tany on February 20, 2013, 05:39:58 PM
Great..
Title: Re: পালা বদলের কাজ হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়
Post by: tany on February 20, 2013, 05:40:25 PM
Thanks for sharing...
Title: Re: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: tany on February 20, 2013, 05:49:32 PM
Very true...
Title: Re: আসছে নতুন প্রজন্মের জিপিএস ৩
Post by: nayeemfaruqui on February 21, 2013, 10:52:07 PM
Hope so..
Title: Re: Pilot less Aircraft
Post by: nayeemfaruqui on February 21, 2013, 11:07:05 PM
Nice post..
Title: Re: Beat the common cold
Post by: nayeemfaruqui on February 21, 2013, 11:08:59 PM
Thanks for the post...
Title: Re: Beat the common cold
Post by: nmoon on February 22, 2013, 01:03:56 PM
Thanks. It's really helpful for us.
Title: Re: Pilot less Aircraft
Post by: bcdas on February 23, 2013, 12:08:34 PM
We should follow the rules..............
Title: Re: Pilot less Aircraft
Post by: Sharmin Jahan on February 26, 2013, 12:50:24 PM
waiting...
Title: Re: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: fernaz on February 26, 2013, 12:56:10 PM
Very true.. Exercise is a very important for all....
Title: Re: Childhood punishment & depression
Post by: anam on February 26, 2013, 01:43:34 PM
We all must change our psychology and strictness we had faced from our parents. You may take it negatively. But you should understand that the time has changed significantly and the children now a days expect more freedom than ever before.
Title: Re: FOR THOSE WHO WANTS TO GO ABROAD FOR HIGHER STUDIES
Post by: anam on February 26, 2013, 07:32:54 PM
wow... why am i so late in reading this post??? So far i know, it is necessary to have recommendation letter from local supervisors. Is there any updated format of such letter?
Title: Re: Childhood punishment & depression
Post by: Sharmin Jahan on February 27, 2013, 09:27:25 AM
We must ensure a happy childhood for every child.
Title: Re: Beat the common cold
Post by: Sharmin Jahan on February 27, 2013, 09:33:39 AM
Thanks for this useful post.
Title: Re: Fat man can be healthy and fited for work
Post by: Sharmin Jahan on February 27, 2013, 11:57:35 AM
its true
Title: MS Office license change
Post by: Shamsuddin on March 13, 2013, 05:44:52 PM
অফিস লাইসেন্সে পরিবর্তন আনলো মাইক্রোসফট

অফিস ২০১৩-এর লাইসেন্সে পরিবর্তন এনেছে টেক জায়ান্ট মাইক্রোসফট। প্রযুক্তি বিষয়ক সাইট সিনেট জানিয়েছে, এখন দ্বিতীয় ডিভাইসেও অফিস স্যুটটি ব্যবহার করা যাবে লাইসেন্স পরিবর্তনের কারণে।

মাইক্রোসফটের তৈরি সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রোগ্রামগুলোর একটি অফিস স্যুট। তবে অফিস স্যুটের সর্বশেষ ভার্সনে লাইসেন্স বিধিনিষেধের কারণে একাধিক ডিভাইসে এটি ব্যবহারের সুযোগ ছিলো না। এমনকি একটি ডিভাইস থেকে অফিস স্যুটটি আনইনস্টল করার পরেও অন্য ডিভাইসে ব্যবহার করা যেত না।

অফিস স্যুট ২০১৩-এর লাইসেন্সের এই বিধিনিষেধের কারণে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন ক্রেতারা। এর পরিপ্রেক্ষিতেই লাইসেন্সে পরিবর্তন এনেছে এই মার্কিন টেক জায়ান্ট। এর ফলে এখন অফিস স্যুটের একটি প্যাকেজ একসঙ্গে চালানো যাবে ডেস্কটপ এবং ল্যাপটপ বা ল্যাপটপ এবং ট্যাবলেটে।


Source: Internet
Abu Kalam Shamsuddin
Lecturer
Department of Multimedia Technology and Creative Arts
Daffodil International University
Dhaka
Title: Re: MS Office license change
Post by: fernaz on March 14, 2013, 08:16:45 AM
Good!