Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Mashud

Pages: [1] 2 3
1
বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় অনেকে পুদিনা পাতার চা পান করতে পছন্দ করেন। শুধু স্বাদ বা গন্ধের জন্য নয়, অনেক অঞ্চলে এই চা ওষুধি হিসাবেও ব্যবহার করা হয।

বিভিন্ন উপায়ে পুদিনা চা শরীরের উপকার করে। এই চা শরীর শীতল করে এবং শক্তি বাড়ায়। একই সঙ্গে মাথা ব্যথা, সাইনাস এবং পেটের সমস্যার জন্য এটি দারুন উপকারী।

পুদিনা চা হজমশক্তি বাড়ায় এবং প্রদাহজনিত ব্যথা কমায়। এটি মানসিক ও শারীরিক প্রশান্তি দেয়। মুখের দুর্গন্ধ এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও এই চা কার্যকরী।

গবেষণায় দেখা গেছে, ডায়াবেটিস ও কোলেস্টেরল কমাতে পুদিনা চা দারুন কাজ করে। জ্বর সারাতেও এই চা উপকারী।

যেভাবে তৈরি করবেন পুদিনা চা

১. প্রথমে একটি পাত্রে পানি ফুটিয়ে নিন

২. এবার জ্বাল কমিয়ে পানিতে পুদিনা পাতা ছেড়ে দিন। পাতাগুলো শুকনো কিংবা তাজা-সবরকমই হতে পারে। এখন পাতাগুলো ৫ থেকে ১০ মিনিট ফুটান।

৩. ভালভাবে জ্বাল হলে চুলা বন্ধ করে দিন।

৪. ব্যস তৈরি হয়ে গেল পুদিনা পাতা।

স্বাদ বাড়াতে পুদিনা চায়ে মধু যোগ করতে পারেন। সূত্র : অর্গানিক ফ্যাক্টস

2

কচু দক্ষিন এশিয়া ও দক্ষিন-পূর্ব এশিয়ার সুপরিচিত একটি সবজি। এর কাণ্ড সবজি এবং পাতা শাক হিসেবে খাওয়া হয়।কচুর কাণ্ড ও পাতা-সবকিছুতেই প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি রয়েছে।

কচু শাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিণ, ফ্যাট, কার্বোহাইড্রেট, ডিটারেরী ফাইবার, শর্করা, বিভিন্ন খনিজ ও ভিটামিন রয়েছে।

নিয়মিত কচু শাক খেলে যেসব উপকারিতা পাওয়া যাবে-

১. কচু শাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে । এতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত কচু শাক খেলে কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করা যায়। আরেক গবেষণা বলছে, কচু শাক স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে দারুন কার্যকরী।

২. কচু শাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে। এ কারণে এটি দৃষ্টিশক্তি ভাল রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া চোখ সম্পর্কিত জটিলতা কমায়।

৩. কচু শাকে থাকা স্যাপোনিনস,টেনিনস, কার্বোহাইড্রেট এবং ফ্লাভোনয়েড উচ্চ রক্তচাপ কমায়।নিয়মিত কচু শাক খেলে হৃদরোগের ঝুঁকিও কমে।

৪. যেহেতু কচু শাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি রয়েছে এ কারণে এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

৫. কচু শাক রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে নিয়মিত এই শাকটি খেলে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে।

৬. কচু শাক হজমশক্তি বাড়াতেও ভূমিকা রাখে।

৭. অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরী ও অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান থাকায় কচু শাক যেকোন ধরনের প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে।

৮. যারা রক্তস্বল্পতায় ভূগছে তারা নিয়মিত কচু শাক খেতে পারেন। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে যা রক্তশূন্যতা দূর করতে ভূমিকা রাখে। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কচু শাক খেলে কারও কারও অ্যালার্জির সম্ভাবনা বেড়ে যায় । শরীরে র্যা শ দেখা দেয়, চুলকানি হয়। এ কারণে যাদের এ ধরনের সমস্যা আছে তাদের এই শাক খাওয়ার ব্যাপারে বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নেয়া উচিত। সূত্র : বোল্ড স্কাই

3

শীতকালে বেশিরভাগ ঘরে এসি কিংবা ফ্যান চলা বন্ধ থাকে।এ কারণে অনেকেই মনে করেন হয়তো মাস শেষে বিদ্যুৎ বিল কম হবে। কিন্তু গরম পানির কারণে ঘন ঘন গিজার ব্যবহার করলে বিলের খুব বেশি পরিবর্তন হয় না।বিদ্যুৎ বিল কমাতে সারাবছর কিছু পদ্ধতি অনুসরন করতে পারেন।যেমন-

১. কম বিদ্যুৎ খরচ হয় এমন আধুনিক পদ্ধতির আলো ব্যবহার করলে বিদ্যুৎ বিল কিছুটা কমবে।

২. বাল্ব বা টিউব মাঝে মধ্যে পরিষ্কার করুন। এতে ভিতরের তার ও ফিলামেন্টে ধুলা জমা কমে আসবে। ফলে বাড়তি বিদ্যুৎ টানারও প্রয়োজন হবে না।

৩. অনেক পুরনো ওয়্যারিং অতিরিক্ত বিদ্যুৎ খরচের জন্য দায়ী। তাই দশ বছর পর পর ওয়্যারিং বদলানোর চেষ্টা করুন।

৪. অনেকেই কম দামী ওয়্যারিং ব্যবহার করেন। এতে বিদুৎ বিলে প্রভাব ফেলে। এর চেয়ে বরং একবারে একটু দামী ওয়্যারিং ব্যবহার করে দীর্ঘমেয়াদি সুবিধা ভোগ করুন।লাইন, ফ্যান- এগুলো ৫ থেকে ৬ বছর পর পর বদলান।

৫. ফ্রিজ বারবার খুললে বা অনেকক্ষন খোলা রাখলেও বিদ্যুৎ খরচ বাড়ে। এ ধরনের অভ্যাস পরিবর্তনের চেষ্টা করুন।

৬. ফ্রিজের নিচে বা পিছনে থাকা কন্ডেনসার কয়েলটি মাঝে মধ্যেই পরিষ্কার করুন। এখানে ময়লা জমে থাকলে, বিদ্যুতের খরচ প্রায় ২০ শতাংশ বেড়ে যায়।

৭. যেসব ঘরে খুব বেশি আলোর প্রয়োজন নেই সেখানে কম পাওয়ারের লাইট ব্যবহার করুন।

৮. অনেকেই আছেন কম্পিউটার বা টিভি দেখে কিংবা এসি ব্যবহারের পর স্ট্যান্ডবাই মোডে রেখে দেন সে সব। এতে খরচের মাত্রা বেড়ে যায় ৯০ শতাংশ। এ কারণে কাজ না থাকলে কম্পিউটার ,টিভি, এসি বন্ধ করুন সুইচ বোর্ড থেকে।

৯. অকারণে বৈদ্যুতিক সরঞ্জামের ব্যবহার কমান। যে কাজ এ সব ব্যবহার ছাড়াও করা সম্ভব, তাতে অযথা বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার করবেন না।

১০. সাধারণ রেগুলেটরের বদলে ইলেকট্রনিক ও আধুনিক রেগুলেটর ব্যবহার করুন। এতে বিদ্যুৎ খরচ কমে। নতুন কোনও বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম কিনলে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী যন্ত্র কিনবেন। সূত্র: হোমসেলফি

4
news-image
আওয়ার ইসলাম: হজম ও ঘুম সংক্রান্ত সমস্যা, মানসিক চাপ, ঠাণ্ডা লাগা বা সর্দি-কাশির সমস্যা, মাথাব্যথা, দাঁতে ব্যথা সহ শারীরিক নানা দীর্ঘমেয়াদী ব্যথার সমস্যা, শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা এবং কার্ডিওভ্যস্কুলার সমস্যা, থাইরয়েডসহ অনেক সমস্যাই দূর হবে এক টুকরো বরফ ব্যবহারের মাধ্যমে। শুধুমাত্র  সঠিক পদ্ধতির অনুসরণ করতে হবে।

আমাদের ঘাড়ের পেছনে একটি বিশেষ প্রেসার পয়েন্ট আছে। আর সেই বিশেষ পয়েন্টে ১ টুকরো বরফ কিছুক্ষণ ধরে রাখতে পারলে শরীরের নানা সমস্যা দূর করে দিতে পারে নিমেষেই।

sleep

যেভাবে কাজটি করবেন –

উপরের ছবিটি লক্ষ্য করুন। ঘাড়ের ঠিক মাঝখানের যে পয়েন্টে নির্দেশ করা রয়েছে এই পয়েন্টটাই প্রধান। এই অংশটির নাম ফেং ফু। এই পয়েন্টটি খুঁজে বের করার পর ১ টুকরো বরফ এই পয়েন্টে ধরে রাখুন। ২০ মিনিট এই পয়েন্টে বরফের টুকরো ধরে রাখুন।

নিয়মিত সকালে নাস্তা খাওয়ার আগে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই কাজটি করুন। তবে শুরুতেই ২০ মিনিট বরফ ধরে রাখা হয়তো সম্ভব হবে না। তাই প্রথম কয়েকটা দিন ৩০-৪০ সেকেন্ড বরফ ধরে ধরে রাখতে পারলেই হবে।

খেয়াল করবেন এই পয়েন্টে কিছুক্ষণ বরফ ধরে রাখার পর কিছুটা উত্তাপ অনুভূত হবে। নিয়মিত এই কাজ করলে শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি মানসিক ভাবেও সুস্থতা বোধ করবেন।
OURISLAM24.COM

5
কিছু ওষুধ সেবনের নিয়ম-কানুন, যা জেনে রাখা জরুরি।

১. ব্যথানাশক ওষুধ যেমন: ডাইক্লোফেনাক সোডিয়াম, ন্যাপ্রোক্সেন, আইবুপ্রোফেন, অ্যাসপিরিন ও কিটোরোলাক ইত্যাদি ভরা পেটে গ্রহণ করতে হবে। অন্যথায় অন্ত্র ফুটো হয়ে যেতে পারে।

২. প্রোটন পাম্প ইনহেবিটর যেমন: ওমিপ্রাজল, প্যান্টোপ্রাজল, ইসোমেপ্রাজল ইত্যাদি খাবারের আগে সেবন করতে হবে।

৩. ঠাণ্ডা-সর্দি বা অ্যালার্জির জন্য অ্যান্টিহিস্টামিন, যেমন: লোরাটাডিন, সেটিরিজিন, ফেক্সোফেনাডিন খালি পেটে গ্রহণ করলে এর কার্যকারিতা বেশি হয়।

৪. অ্যান্টাসিড খাবারের পর না খেয়ে ৩০ মিনিট পর খেলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

৫. সিপ্রোফ্লোক্সাসিন খাবার খাওয়ার ২ ঘণ্টা পর পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি দিয়ে সেবন করাই ভালো। সিপ্রোফ্লক্সাসিন গ্রহণের ২ ঘণ্টার মধ্যে দুগ্ধজাত খাবার বা ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, অ্যালুমিনিয়াম, আয়রন বা জিংকযুক্ত খাবার খাওয়া উচিৎ না।

৬. ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট, আয়রন ট্যাবলেট, মাল্টিভিটামিন খাবার কয়েক ঘণ্টা আগে বা পরে সেবন করতে পারেন।

৭. পেনিসিলিন খালি পেটে সেবন করাই ভালো।

৮. কিছু ওষুধ যেমন: কোট্রিম সেবন করলে বেশি পরিমাণে পানি পান করতে হবে। না হলে এটি কিডনিতে পাথর তৈরি করে সমস্যা করতে পারে।

৯. একসঙ্গে বেশ কয়েকটি ওষুধ সেবন করলে ওষুধের মধ্যে প্রতিক্রিয়ায় কোনো কোনো ক্ষেত্রে ওষুধের কার্যকারিতা কমতে পারে। আবার কোনো কোনো ক্ষেত্রে ওষুধের কার্যকারিতা বাড়তে পারে। এ দুটোই বেশ ক্ষতিকর। তাই এ ক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ মানতে হবে।

১০. হাঁপানি আছে এমন ব্যক্তির ব্যথানাশক ওষুধ, বেটা ব্লকার-এটেনোলল, প্রোপানোলল সেবন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

১১. গর্ভাবস্থায় ওষুধ সেবন গর্ভধারণ ও ভ্রূণের ওপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। থ্যালিডোমাইড, রেটিনয়েড, ক্যান্সারের ওষুধ সেবন করলে গর্ভের শিশুর ক্ষতি হতে পারে।

গর্ভকালীন টেট্রাসাইক্লিন শিশুর দাঁত ও হাড়ের গঠনে বাধা দেয়। গর্ভকালীন ডায়াবেটিসের ওষুধ শিশুর হাইপোগ্লাইসেমিয়া করে মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। তাই এ সময় ইনসুলিন নিতে হয়।

আরও পড়ুন : ক্যান্সারের নতুন ওষুধ

6
Fibre Testing / Fiber Test
« on: July 10, 2018, 02:49:37 PM »
Mainly Two types:
1. High Volume Instrument (HVI)
From HVI we can find out-
1. Spinning Consistency Index (SCI)
2. Micronaire (Mic)
3. Maturity Index (Mat)
4. Upper Half Mean Length (in) or (mm)Len
5. Uniformity Index (Unf)
6. Short Fiber Index (SFI)
7. Strength (Str)
8. Elongation (Elg)
9. Moisture (Moist)
10. Reflectance (Rd)
11. Yellowness (+b)
12. Color Grade (C Grade)
13. Trash Count (TC)
14. Trash Area (TA)
15. Trash Grade (Tr Grade)
16. Fluorescence (UV)
17. Neps (Nep)

# Advance Fiber Information System. (AFIS)
From AFIS we can find out-
1. Nep Count per gram  (Nep Cnt/g)
2. Nep Size [micron] (Nep Size [μm])
3. Seed Coat Nep Count per gram (SCN Cnt/ g)
4. Seed Coat Nep Size[micron] (SCN Size μm)

7
Spinning Techniques / Introduction to New Spinning Technologies
« on: July 10, 2018, 02:36:35 PM »
In today’s technology, many spinning systems are used commercially to produce spun yarns with a wide range of values of characteristics. Among these systems, ring spinning enjoys the greatest diversity and the highest quality levels. Ring spinning has been able to supplant almost all other conventional spinning methods and has proved very resistant to inroads by the newcomers. This can be attributed mainly to its flexibility, universal applicability, and yarn quality.
Other new spinning systems such as rotor spinning, air-jet spinning, and friction spinning suffer inherent limitations that make them suitable for only narrow ranges of yarn count and twist levels. However, the major limiting factor in ring spinning is their low production rate in comparison with all new spinning technologies. Typically, ring-spinning can only operate at a production speed of up to 30 m/min, while other systems producing comparable yarns (such as rotor spinning and air-jet spinning) can operate at production speeds of up to 250 m/min. The low production rate in ring spinning is primarily attributed to the use of the ring/traveller system for twisting and winding.

New Spinning Systems :
#Open-End Spinning------
1. Rotor spinning 1
2. Rotor spinning 2
3. Friction Spinning
4. Air jet spinning
5. Vortex Spinning

Other Spinning Systems:
1. Electrostatic Spinning
2. Air-Vortex Spinning
3. Twist Spinning
4. REPCO Spinning (Self-twist spinning)
5. WRAP SPINNING
6. PARAFIL System
7. Core Spinning
8. Twistless Yarns

8
Novel Yarns / Fancy yarns
« on: July 10, 2018, 02:25:13 PM »
Fancy yarns are special products of spinning, twisting, wrapping, texturing and knitting, etc. The demand for yarns with structural and/or optical effects is due to the special aesthetic and high decorative appeal to the woven, knitted materials, and other textiles as well. Textile materials that are produced using yarns with effects find applications in normal and high fashion clothing.
Such yarns are also used for decorative textiles like
curtains
carpets
ladies and children Outerwear
Decor materials and textile fabrics in the corporate sector, as for example in the trim of a car or textile furnishing of a hotel lobby are becoming more and more important.
Different types of fancy yarns that are available:
1. Marl Yarn
2. Spiral or Corkscrew yarn
3. Gimp Yarn
4. Diamond Yarn
5. Loop Yarn
6. Snarl Yarn
7. Knop Yarn
8. Slub Yarn
9. Fasciated Yarn
10. Tape Yarn
11. Chainette Yarn
12. Chenille Yarn
13. Ribbon Yarns
14. Composite Yarns
15. Covered Yarns
16. Metallic Yarns

9
Synthetic Yarns / Definition of Synthetic yarn
« on: July 10, 2018, 02:14:54 PM »
Synthetic yarn: Cotton and polyester are the most commonly spun fibers in the world. Cotton is grown throughout the world, harvested, ginned, and prepared for yarn spinning. Polyester is extruded from polymers derived from natural gas and oil. Synthetic fibers are generally extruded in continuous strands of gel-state materials.

There are two types of polyester yarns: filament and spun Filament yarns are made by taking the single polyester filaments, grouping them together and then twisting or air-entangling them to make them workable. A monofilament yarn has just one, single polyester fiber that is usually not twisted.

10
Spun Yarns / Definition of Textile Yarn
« on: July 10, 2018, 02:04:43 PM »
Yarn is a long continuous length of interlocked fibres, suitable for use in the production of textiles, sewing, crocheting, knitting, weaving, embroidery and rope making. Thread is a type of yarn intended for sewing by hand or machine. Modern manufactured sewing threads may be finished with wax or other lubricants to withstand the stresses involved in sewing.  Embroidery threads are yarns specifically designed for hand or machine embroidery.

11
Textile Fibres / Definition of Textile fiber and History
« on: July 10, 2018, 01:57:56 PM »
A textile is a flexible material consisting of a network of natural or artificial fibres (yarn or thread). Yarn is produced by spinning raw fibres of wool, flax, cotton, hemp, or other materials to produce long strands. Textiles are formed by weaving, knitting, crocheting, knotting, or felting.

The related words fabric and cloth are often used in textile assembly trades (such as tailoring and dressmaking) as synonyms for textile. However, there are subtle differences in these terms in specialized usage. A textile is any material made of interlacing fibres, including carpeting and geotextiles. A fabric is a material made through weaving, knitting, spreading, crocheting, or bonding that may be used in production of further goods (garments, etc.). Cloth may be used synonymously with fabric but is often a piece of fabric that has been processed.

The discovery of dyed flax fibres in a cave in the Republic of Georgia dated to 34,000 BCE suggests textile-like materials were made even in prehistoric times. Textile machinery at the Cambrian Factory, Llanwrtyd, Wales in the 1940s. The production of textiles is a craft whose speed and scale of production has been altered almost beyond recognition by industrialization and the introduction of modern manufacturing techniques. However, for the main types of textiles, plain weave, twill, or satin weave, there is little difference between the ancient and modern methods.

12
কালো আঙ্গুরে অনেক গুণ আছে। পুষ্টিবিদরা জানাচ্ছেন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর কালো আঙ্গুর খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভাল। শুধু হার্ট বা ত্বকই নয়, দৃষ্টিশক্তি থেকে শুরু করে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ এমনই বেশ কিছু শারীরিক সমস্যায় দারুণ কাজ দেয় এই আঙ্গুর।

আসুন জেনে নিন কালো আঙ্গুরের কিছু গুণ….

১) মিশিগান ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে , কালো আঙ্গুর খেলে হৃদপিণ্ডে রক্ত চলাচল ভাল হয়। এর ফাইটোকেমিক্যাল হার্টের পেশীকে সুস্থ রাখে। পাশাপাশি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে।

২) কালো আঙ্গুরে থাকে লুটেন এবং জিয়াজ্যানথিন, যা আমাদের দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে।

৩) ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরপুর কালো আঙ্গুর ত্বকে রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে। এর ফলে বলিরেখা, কালো ছোপ, শুষ্ক ত্বকের বিভিন্ন সমস্যায় কালো আঙ্গুর খুবই উপকারী।

৪) কালো আঙ্গুরে রয়েছে ভিটামিন সি, কে এবং এ যা দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এ ছাড়াও এই আঙ্গুরের ফ্ল্যাবনয়েডস, খনিজ, অর্গ্যানিক অ্যাসিড কোষ্ঠ্যকাঠিন্য এবং হজমের সমস্যা ও কিডনির বিভিন্ন সমস্যায় ভালো কাজ দেয়।

৫) কলোরাডো ইউনিভার্সিটির ক্যান্সার সেন্টারের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কালো আঙ্গুর ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে উল্ল্যেখযোগ্য ভূমিকা গ্রহণ করে।

৬) ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে কালো আঙ্গুর।

৭) মস্তিস্কের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে কালো আঙ্গুর। স্মৃতিশক্তি বাড়ায়, মাইগ্রেন, অ্যালঝাইমার্সের মতো রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা রয়েছে কালো আঙ্গুরের।

13
ফিটনেস ধরে রাখার জন্য সবচেয়ে ভাল ব্যায়াম হচ্ছে নিয়মিত হাঁটা। কারণ এটি হার্ট ভাল রাখে, হৃদরোগ-কোলেস্টরেল, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে, পেশী মজবুত করে। আর এর সবই পাওয়া যায় একেবারে বিনামূল্যে।


আপনি কি নিজেকে ফিট রাখার জন্য নিয়মিত হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তবে এই টিপসগুলো মনে রাখুন:

নিজেকে অতিক্রম করুন

শুরুতেই মাইলের পর মাইল হাঁটার আশা করবেন না। প্রথমে নিজের সাধারণ হাঁটার যে গতি সেটা অতিক্রম করুন। তবে ধীরে, যেমন স্বাভাবিকভাবে যদি এক কিলোমিটার হাঁটতে আপনার ১৫ মিনিট সময় লাগে, তবে এখন থেকে চেষ্টা করুন ১২ মিনিটে সেই পথটুকু অতিক্রম করতে। এভাবেই ধীরে ধীরে সময়ের কমিয়ে পথের দূরত্ব বাড়ান।

জুতা স্টাইলের জন্য নয়

আরামদায়ক জুতা পরুন, এটি হাঁটার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দ্রুত হাঁটতে হলে পায়ের জন্য সঠিক মাপের নিচু জুতা নির্বাচন করুন। দোকানে গিয়ে মোজা ও জুতা পরে কয়েক মিনিট হেঁটে তারপর কিনুন। 

ট্রাক করুন
বর্তমানে ফিটনেস ট্রাকার বেশ জনপ্রিয়। হাঁটার সময় ট্রাকার অন রাখুন। এতে কত পা ফেলছেন, কতটুকু পথ ‍অতিক্রম করছেন, এতে করে কত ক্যালরি পুড়ছে সবই দেখা যায়।  এটি আপনার রুট পরিকল্পনা এবং আপনার ব্যায়ামের রুটিন ঠিক করতে সাহায্য করবে।

পর্যাপ্ত বিশ্রাম

অফিসে কাজ করলে সাপ্তাহিক ছুটি থাকে। তেমনি নিয়মিত হেঁটে শরীরেরও পরিশ্রম হয়। তাই নিজেকেও একটি দিন ছুটি দিন। সাপ্তাহিক এই বিরতিতে বিশ্রাম নিন, এতে শরীর পরবর্তীতে আরও ভাল কার্যক্ষম হয়।

14
স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবাসাইটে জানানো হয়, চোখে ব্যথা হলে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসেবে এসব পন্থা অবলম্বন করে সহজেই নিরাময় করা যায়। তবে সমস্যা বেশি হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

ঠাণ্ডা পানি

কনজাংটাইভ বা চোখের সাদা অংশের প্রসারিত রক্তনালীগুলোর কারণে চোখ লাল হয়ে থাকে। ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দিয়ে চোখের এই যন্ত্রনাদায়ক রক্তনালীগুলো শিথিল করার মাধ্যমে লালভাব দূর করা যেতে পারে। এছাড়াও পরিষ্কার কাপড়ে বরফের টুকরা নিয়ে আক্রান্ত চোখে ব্যবহার করলেও উপকার পাওয়া যায়।

কান্না

চোখ ব্যথা সারাতে কান্নাকাটিও করতে পারেন। চোখের পানি মূলত হালকা অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট, যা চোখের ব্যকটেরিয়ার ধুয়ে ফেলতে সাহায্য করে। পাশাপাশি এটি চোখ আদ্র রাখে, ফলে চোখে ঘর্ষণের ফলে তৈরি ব্যথা কম হয়।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার

একই পরিমাণ পানি ও অ্যাপল সাইডার ভিণিগার মিশিয়ে তুলার বলের সাহায্যে চোখের পাতায় মাখিয়ে নিতে হবে। অ্যাপল সাইডার ভিনিগারের মাইক্রোবায়াল উপাদান ব্যকটেরিয়া ধ্বংস করতে সহায়ক।

ঠাণ্ডা চামচ

বরফশীতল পানিতে দুতিন জোড়া চামচ ডুবিয়ে রাখে সেটা চোখের উপর ধরে রাখুন। চামচের ঠাণ্ডাভাব ফুরিয়ে গেলে চামচ পরিবর্তন করে নিতে হবে।

শসা

চোখের নিচের কালোদাগ ও ফোলাভাব দূর করতে সহায়ক এটা সবারই জানা। পাশাপাশি রূপচর্চায় যেভাবে ব্যবহার করা হয় সেভাবে ব্যবহার করলে চোখের ব্যথাও দূর করে এই সবজি।

গ্রিন টি ব্যাগ

চোখ ব্যথার সবচাইতে যন্ত্রনাদায়ক উপসর্গগুলো থেকে মুক্তি দেয় গ্রিন টি’য়ের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল উপাদান।

এক কাপ গরম পানিতে গ্রিন টি ব্যাগ ডুবিয়ে রাথতে হবে যতক্ষণ না গরম পানি ঘরের তাপমাত্রায় আসে। পরে কাপটি কয়েক মিনিট ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে নিতে হবে। তারপর টি ব্যাগ থেকে বাড়তি পানি বের করে নিয়ে টি ব্যাগটি বন্ধ চোখের উপর রাখতে হবে।

অ্যালোভেরা জেল

জ্বলা, প্রদাহ ও আরও অনেকরকম ত্বকের সমস্যা দূর করতে সহায়ক অ্যালোভেরা জেল। চোখ ব্যথার উপসর্গ দূর করতেও এটা কার্যকর। পাতা থেকে জেল বের করে তা কয়েক মিনিট ফ্রিজে ঠাণ্ডা করে চোখের পাতায় মাখতে পারেন।

গোলাপ জল

একটি তুলার বল দিয়ে বন্ধ চোখে গোলাপ জল মাখানোর মাধ্যমে চোখ ব্যথার উপসর্গ থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

দুধ ও মধু

দুধে আছে শীতলকারী উপাদান আর মধু একটি সুপরিচিত অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল এজেন্ট। দুধ ও মধু একত্রে মিশিয়ে ব্যবহার করলে ব্যথা ও প্রদাহ কমে তাৎক্ষনিকভাবে।

এক টেবিল-চামচ কুসুম গরম দুধে এক ফোঁটা মধু মিশিয়ে ড্রপারের সাহায্যে চোখে ব্যবহার করতে পারেন।

15
১. গরম কালে বেশি কেমিক্যালের ব্যবহারে ত্বকে প্রভাব পড়ে। চেষ্টা করুন অরগ্যানিক সাবান, অরগ্যানিক ফেস ওয়াশ ব্যবহার করতে। স্নানের সময় আয়ুর্বেদিক সাবান ব্যবহার করুন। গরমে ঘামের ফলে শরীরে জমা ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া দূর হবে। ফল বা নিম জাতীয় ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন দিনে ২ বার।

২. গরম কালে সতেজ থাকার সবথেকে বড় উপায় প্রচুর জল খাওয়া। সারাদিন ফলের রস, ডাব খেতে থাকুন। এর ফলে শরীরে জলের সমতা বজায় থেকে স্বাস্থ্য সতেজ লাগবে। যার প্রভাব পড়বে আপানরা চেহারাতেও।

৩.গরমে সবথেকে বেশি সমস্যা হয় অতিরিক্ত ঘামের কারণে। অতিরিক্ত ঘামের ফলে শরীর থেকে জল বেরিয়ে গিয়ে ক্লান্ত লাগে শরীর। অনেকে আবার ভোগেন অতিরিক্ত ঘামের দুর্গন্ধে। ঘাম ও দুর্গন্ধের হাত থেকে রেহাই পেতে ডায়েটে রাখুন প্রচুর শাকসবজি ও ফল। বিশেষ করে শশা। গরম কালে নিয়মিত ফল, শশা খাওয়ার ফলে ঘাম কমবে, জল তেষ্টাও কম পাবে। ঘামের দুর্গন্ধও কম হবে।

৪. গরম কালে সুতির জামা কাপড় পরার চেষ্টা করুন। গরমে সুতির থেকে ভাল ফেব্রিক আর কিছুই হতে পারে না। সুতি শুধু হালকা নয়, শরীরের পক্ষেও ভাল। সেইসঙ্গেই খেয়াল রাখুন হালকা রঙের জামা কাপড় পরার দিকে। সাদা বা যে কোনও হালকা শেড পরলে গরম কম লাগবে। চেহারায় ফ্রেশনেসও থাকবে।

৫. গরম কালে ব্যাগে রাখুন রোজ ওয়াটার স্প্রে, অ্যালোভেরা জেল, ওয়েট টিস্যু জাতীয় জিনিস। যখনই ক্লান্ত লাগবে ওয়েট টিস্যু দিয়ে মুখ মুছে নিয়ে রোজ ওয়াটার স্প্রে করে নিন বা অ্যলোভেরা জেল লাগিয়ে নিন।

৬. সকালে বের হবার আগে গোসল সেরে নিন। এতে আপনি যেমন নিজেকে পাবেন ফুরফুরে মেজাজে তেমনি কাজের শুরুতেই দিনটা শুরু হবে প্রাণচঞ্চলভাবে। গোসলের পানিতে একফোঁটা গোলাপজল মিশিয়ে নিতে পারেন, এটি আপনাকে প্রশান্তি দেবে।

৭.সকালের নাস্তায় ভারী তেলচর্বি খাবার না রেখে হালকা পানীয় যেমন কমলার জুস কিংবা মিল্ক সেক রাখতে পারেন। এটি আপনাকে একদিকে যেমন মুখরোচক খাবার দিচ্ছে তেমনি আপনার শরীরকে দেচ্ছে সারাদিনের এনার্জি।

৮.সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুষঙ্গ। আপনার পার্স ব্যাগে কিংবা পকেটে আপনি খুব সেহজেই এটি বহন করতে পারেন। গরমে ঘামে খসখসে কাপড় ব্যবহার না করাই ভালো। এতে চামড়ায় লালচে দাগ পরে যায় এবং সাথে সাথে এলার্জিজনিত সমস্যাও দেখা দিতে পারে তাই গরমে হাত-মুখ মোছার কাপড় ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন করুন।

৯.গরমের শুরুতে হালকা রঙের কাপড় পরার অভ্যাস গড়ে তুলুন। সাদা রঙের কাপড় এই হালকা গরমে বেশি পরতে পারেন, তবে কালো রঙের কাপড় ব্যবহার না করাই ভালো। কাপড় ব্যবহারের সময় কাপড়টি সম্পূর্ণ সুতি কি না তার দিকে কেনার সময় লক্ষ রাখুন।

১০.এই সময় চুল বেঁধে রাখা চুল ছেড়ে রাখার থেকে ভালো। এতে আপনার গরম তুলনামূলকভাবে কম লাগবে। এই গরমে কোথাও যেতে খোঁপা কিংবা পলিটেইল খুব সহজেই আপনার সঙ্গে মানিয়ে যাবে।

Pages: [1] 2 3