Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Md. Anwar Hossain

Pages: [1] 2 3 ... 7
1
Humanities & Social Science / Between motherhood and employment
« on: April 11, 2019, 07:32:02 PM »
Exactly a month from now, the world will celebrate Mother’s Day. In lieu of the greeting card tags, flower bouquets, and arguments about monetizing sentiments, let’s shift the conversation towards motherhood itself.

According to ILO, women’s global labour force participation rate was 48.5% last year, which makes for a good place to start: Is the female workforce getting the benefits they need, and should they decide to become mothers?

Maternal leave is an employee benefit which allows expecting mothers to take time off from their work to care for their child. For healthy brain development and overall well-being, a child needs the care of their mothers.

The arguments for maternal leave are many, but a strong factor, especially when juxtaposed with motherhood, is that studies have linked paid maternity leave to lower infant mortality rates. Aside from giving the time needed for mothers to recover from childbirth, maternal leave can also aid in reducing the risk of post-partum depression.

There are persistent arguments against it, and with the US still without mandated leave for mothers, they are also worth looking at. Cost is one of them -- funding leave for employees is not cheap, regardless of them being paid or unpaid.

According to neo-classical economists, the demand for women employees will fall should there be an expectation of rising costs of hiring women. Segueing this to the term “motherhood penalty” will remind us of the systematic disadvantages that women often face in the workplace compared to their male counterparts, with motherhood being one of the key factors put forward.

However, maternal leave does not just benefit employees. More and more organizations are realizing how much of a competitive advantage it is to offer time off to new parents. Organizations can benefit from increased productivity from returning workers.

Google extended its maternity leave program, and the result was happier and more productive employees. The company stated that the cost was “more than offset by the value of retaining expertise and avoiding the cost of a new hire.”

It also does wonders on employee loyalty -- a supportive workplace environment in the crucial time of pregnancy and child-rearing is likelier to have their employees want to keep working there.

If our understanding of parental leave is centred on the needs of newborns, then where does paternity leave step in? The presence of fathers or secondary parents are not only needed for the child, but also assists the mothers in alleviating some of the burden of caring for a new baby.

Do we have the scope to debate over paternity leave, when mothers -- the traditional caregivers deemed by society -- are having a hard time securing time off?

Canada has rolled out a new parental leave policy just last month for the secondary parent to be able to take five to eight weeks off to care for their child. The policy aims to promote greater gender equality by integrating men into mainstream ideas of nurturing and care-giving.

While Section 45 of the Bangladesh Labour Act 2006 mandates mothers to be able to take 16 weeks off from work, this is hardly practiced throughout the spectrum of employment in the country and paternity leave far from being brought into the dialogue.

The good news is that organizations have become increasingly aware of the importance and need for implementing such policies. BRAC has recently extended its existing paternity leave policy for its employees.

Expectant fathers can now take four weeks off from work with pay. For mothers, a six months’ leave with pay is granted; in case of adopting mothers, a three months’ leave can be availed.

Family bonding and healthier children are telltale proponents for parental leave. But it is about time that all employers understand that allowing new parents time off also means greater financial stability for their employees, greater employee loyalty, stronger attachment to the workplace, and, if we play our cards right, a step towards gender equality.

2
Situations can rapidly turn calamitous and cause numerous casualties and losses when fires erupt in densely populated areas or slums in Bangladesh.

To prevent these incidents, an early warning fire alarm system, "Lumkani," is being used as a fire detector in the slums of Dhaka.

This low-cost device, connected to each other and a central watchtower via network, is a heat detector, unlike traditional detectors which respond to smoke. Lumkani’s makers, a South African social enterprise, say this is owing to the fact that slum dwellers often use lighting and cooking methods that produce smoke.

According to the Department of Fire Service and Civil Defence, some 17,000 fire incidents took place in a year on average while around 2% of all fires were in slums across the country.

Within one week, 71 people died in the devastating fire of Old Dhaka's Chawkbazar, and around 500 houses were burned down by the Jahangir slum fire in Bhashantek of Mirpur. Previously, Mohakhali's Korail slum also had an onslaught of fire incidents several times.

Across the world, one person in ten, currently lives in a slum. With the global urban population estimated to expand by 2.5 billion people over the next 25 years, this number is only likely to grow. Every day, people living in slums face a deadly risk to their health and safety.

The combination of houses built closely together, with dangerous electrical connections, and open flames used for heating and cooking, creates perfect conditions for quickly spreading fires.

Considering these dangers, World Vision International, Bangladesh, is bringing Lumkani to two slums of Dhaka: Korail and Kallyanpur.

Small but effective

On January 18, a signal came from a house of Korail slum, with a GPS notice to the World Vision Fire Signal Watch Tower. After that, the monitoring team informed the slum's community by text message, which was stored in their data, about the signal.

Over phone, slum dwellers said the signal was not because of the fire. Food for a wedding ceremony was being cooked in that area, and the device gave a signal by detecting a rise in temperature that was above normal.

Whenever a fire is detected, an alarm will go off from all devices within a 40 metre radius. Warnings will be sent via SMS around the community and fire services will automatically be notified with GPS coordinates of the area.

All of this allows for a rapid community response that saves lives and properties, World Vision Bangladesh said.

Under the project, ‘Urban Slum Fire Readiness,’ this private organization bought the device from South Africa.

Lumkani is the world’s first fire detection system designed specifically for urban slums. The system detects fires in slums by measuring the rapid rise in temperature and sends out a warning to other local devices, which are networked by radio frequency, project Manager Fatema Meherunnessa said.

“As slum dwellers are not alert during a fire, considering all this we launched a pilot program in June 2017 and about four thousand Lumkani devices were installed in 2,100 houses in Kallyanpur, and 2,000 houses in Korail,” she said.

Future plan

World Vision will run this pilot program until June 2019.  Their target is to install this device in slum areas across the country. However, when the project ends, they want it to be distributed through government sponsorship or other companies because the device is quite expensive as it is bought from Africa.

Fatema said the project's proposal was to bring the latest version of this innovative system to highly vulnerable urban communities in Asia, beginning with Dhaka of Bangladesh, home to 3.6 million people living in closely packed areas.

Major AKM Shakil Nawaz, director (Operation and Maintenance) of Fire Service and Civil Defence, said this technology may warn people about a fire.  However, first the awareness of people in the slums about fires is necessary.

He said: "Last month, seven people of the same family died in Chittagong because they locked themselves inside the house to protect themselves and slept. If these techniques are useful in such cases, the number of dead might decrease."

3
Humanities & Social Science / A deep sickness in our society
« on: April 11, 2019, 07:22:54 PM »
What happened to an 18-year-old female madrasa student from Feni cannot be seen as an isolated incident -- we have seen terrible crimes like this happen in Bangladesh many times before.

After the young woman had lodged a case against the madrasa principal, Sirajuddaula, for sexual misconduct, she was doused with kerosene and set on fire by supporters of the principal.

Every year, countless women and girls are raped, assaulted, or sexually harassed in the country, and most of these crimes do not get reported or investigated due to the fear and stigma attached to sexual violence in Bangladesh.

The Feni madrasa incident shows exactly why women find it so hard to report sexual violence -- when they do, they often face violent retaliation, and are therefore doubly victimized.

It is a fact that, as a culture, we still do not take sexual violence as seriously as we should, too often shaming and blaming the victim, investigating the accuser instead of the accused.

The Feni student was brave enough to come forward about her principal’s misdeeds, and for that she was punished, through which the attackers may have hoped to silence all other women who think of speaking out against their abusers.

But it is time to shatter the fear and stigma, it is time for all of us to rise up and fight this deep sickness within our society -- a sickness that keeps letting rapists and abusers off the hook while punishing victims.

If we, as a nation and as a society, fail to address this problem and make life safer for women, our development ambitions will remain a far cry; because there can be no meaningful development without ensuring the basic rights of women first.

4
এনালা নগুলুর যখন ১৩ বছর বয়স, তখন তাঁর ৪৭ বছর বয়সী এক ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে হয়। ওই ব্যক্তির তখন আরও দুটি স্ত্রী ছিল। যখন তাঁর স্কুলে গিয়ে পড়ালেখা করার কথা ছিল, কথা ছিল গোটা বিশ্ব সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের, তখন তাঁর কাঁধে বিয়ে এবং সন্তানধারণের মতো গুরুদায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া হয়। ১৫ বছর বয়সে এনালা প্রথম সন্তানের জন্ম দেন এবং তারপর তাঁর আরও পাঁচটি কন্যাসন্তান হয়। এটা আসলে বর্তমান বিশ্বের সাড়ে ৩৭ কোটি নারীর গল্প, যাদের বয়স ১৮ বছর হওয়ার আগেই বিয়ে হয়ে যায় এবং সন্তানের মা হয়।

যে বিষয়টি এনালাকে অন্যদের চেয়ে অনন্য করে তোলে, তা হচ্ছে তিনি তাঁর আকাঙ্ক্ষা দমিয়ে রাখেননি। তিনি ২৯ বছর বয়সে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। মালাবির এই নারী পড়ালেখা চালিয়ে যান এবং ২০১২ সালে স্কুলশিক্ষা সমাপনীর সনদ হাতে পান। এনালা এখন কারোঙ্গায় ফাউন্ডেশন ফর কমিউনিটি সাপোর্ট সার্ভিসেসে একজন মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করছেন। কিন্তু শুধু পড়ালেখা ও চাকরি করাই তাঁর একমাত্র স্বপ্ন ও আকাঙ্ক্ষা ছিল না, তিনি তাঁর ছয় কন্যাসন্তানকে বাল্যবিবাহ না দিয়ে পড়ালেখা করানোর ব্যাপারে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলেন।

এনালা তাঁর এই স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছেন। তিনি মালাবিতে বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিয়ে প্রতিরোধে কমনওয়েলথের কার্যক্রমে নিজেকে যুক্ত করেছেন। এখন মালাবিতে মেয়েদের বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিয়ে নিষিদ্ধ।

এনালার মতো নারীদের ঘুরে দাঁড়ানোর কাহিনি আমাকে অনুপ্রাণিত করে তঁাদের জন্য সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে কিছু করতে, যাতে তাঁদের কথা কেউ ভুলে না যায় এবং তাঁদের দুর্দশা লাঘবে সিদ্ধান্ত নেয়। খুব অল্প বয়সেই আমি এটা উপলব্ধি করতে পেরেছিলাম যে নারী-পুরুষের সমতা দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির প্রধান উৎস। কিন্তু সমাজের ধ্যানধারণা ও বৈষম্যমূলক আইনকানুন সব ক্ষেত্রে নারীদের পূর্ণাঙ্গ অংশগ্রহণকে বাধাগ্রস্ত করছে। এই বিপজ্জনক বাস্তবতা আমাকে আইন পেশা বেছে নিতে উদ্বুদ্ধ করে এবং সম্ভাব্য সব উপায়ে নারী ও মেয়েদের ক্ষমতায়নে সাহায্য করতে আমাকে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ করে তোলে।

Eprothom Alo১৯৯৭ সালে আমি স্কটল্যান্ডের অ্যাস্টালের ব্যারোনেস হিসেবে হাউস অব লর্ডসে প্রবেশ করি। ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর ও স্বরাষ্ট্র দপ্তরে আমার গোটা মন্ত্রিত্বের জীবনে এবং ইংল্যান্ড, ওয়েলস ও উত্তর আয়ারল্যান্ডের প্রথম নারী অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে আমি নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী-পুরুষের সমতা প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে চেষ্টা চালিয়ে গেছি। ১৯৯৯ থেকে ২০০১ সালের মধ্যে পররাষ্ট্র দপ্তরে ফোর্সড ম্যারেজ ইউনিট, ইন্টারন্যাশনাল চাইল্ড অ্যাবডাকশন ইউনিট ও হিউম্যান রাইটস প্যানেল সৃষ্টি করেছি বিশ্বজুড়ে তরুণ-তরুণীদের সহায়তা ও সমর্থন জোগানোর জন্য।

এরপর ২০০৩ সালে আমি পারিবারিক সহিংসতার ওপর আন্তমন্ত্রণালয় একটি গ্রুপের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করি। এখানে আমরা এই অপরাধের ক্ষতিকর প্রকৃতি মোকাবিলা করার জন্য একটি বহু সংস্থাভিত্তিক পদ্ধতি চালু করি। আমরা অন্যান্য সরকারি বিভাগ, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও দাতব্য প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে মিলিতভাবে কাজ করে শেষ পর্যন্ত পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা বছরে ৬৪ শতাংশ কমিয়ে আনি এবং পারিবারিক সহিংসতার কারণে ক্ষতির পরিমাণ ৭১০ কোটি পাউন্ড কমিয়ে আনি।

তিন বছর আগে ২০১৬ সালে যখন আমি কমনওয়েলথের প্রথম নারী মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পাই, তখন আমি নারী-পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করি এবং কমনওয়েলথের সনদে তা অন্তর্ভুক্ত করি। ২০১৬ সালে বিশ্বব্যাংকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কমনওয়েলথের ৪১টি দেশে কমপক্ষে একটি করে আইন আছে, যা নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার সুযোগে বাধা সৃষ্টি করে।

এ ধরনের বাধা দূর করতে কমনওয়েলথ ইউএন উইমেনের সহযোগিতা নিয়ে একটি কৌশল গ্রহণ করে, যাতে বিশ্বব্যাপী এসব বৈষম্যমূলক আইন নির্মূল করা যায়। একে বলা হয় ‘লেভেলিং দ্য ল’। এই কাঠামোর মধ্যে আমরা সদস্যদেশগুলোকে নারী অধিকার সংরক্ষণে আইন পাস, সংশোধন ও সংস্কারে সাহায্য করি।

আমরা কোনো নারী ও মেয়ের দক্ষতা, শক্তি ও উৎসাহ হারানোর ঝুঁকি নিতে পারি না। আমরা অবশ্যই সেই সামাজিক মূলধন গড়ে তুলব, যা দীর্ঘ মেয়াদে নারীদের সম্পদ বৃদ্ধি ও উন্নত স্বাস্থ্য নিশ্চিত করবে। প্রত্যেক নারী ও মেয়ে নিজের ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য পুরুষের মতো সমান অধিকার রাখে, হতে পারে সে নাউরুর মতো ১০ হাজার জনসংখ্যার ছোট কোনো কাউন্টিতে বসবাস করছে বা ভারতের মতো ১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশে বসবাস করছে।

নারীর ক্ষমতায়নের জন্য আমরা সদস্যদেশগুলোর নানা কর্মসূচি ও উদ্যোগে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছি। এর মধ্যে রয়েছে:

১. জমি ও সম্পত্তির উত্তরাধিকারে নারীর অধিকারের প্রতিবন্ধকতা দূর করতে আইনি নথিপত্র সরবরাহ করা।

২. নারী ও মেয়েদের ওপর সহিংসতার আর্থিক ক্ষতির পরিমাপ করা, যেমন রোজগার হারিয়ে ফেলা।

৩. অর্থনৈতিক উন্নয়নে নারীদের সমান অংশীদার হিসেবে দেখা হচ্ছে, এটা নিশ্চিত করতে কমনওয়েলথ মহিলাবিষয়ক মন্ত্রীদের ত্রৈমাসিক বৈঠকে বসা।

৪. নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় নারীদের বৃহত্তর অন্তর্ভুক্তি ও অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করতে নারী-পুরুষের অন্তর্ভুক্তিমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য একটি কমনওয়েলথ চেকলিস্ট তৈরি করা।

৫. ‘জেন্ডার ইক্যুয়ালিটি ইন দ্য কমনওয়েলথ’ নামে একটি বার্ষিক প্রকাশনায় সহায়তা দেওয়া, যেখানে বিভিন্ন দেশের নারীর অগ্রগতি-সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে।

৬. কমনওয়েলথ উইমেনস ফোরামের বৈঠকে দুই বছর অন্তর বসা, যেখানে নারী-পুরুষের বৈষম্য নিরসনে সদস্যদেশগুলোর নেতাদের কাছে সুপারিশ তুলে ধরা হবে।

নারীর ক্ষমতায়ন শুধু নারীর বিষয় নয়, এটা প্রত্যেকের বিষয়। নারীর জন্য বিনিয়োগ মানে এমন একটি ভবিষ্যৎ, যা আরও অন্তর্ভুক্তিমূলক, আরও ন্যায্য, আরও সমৃদ্ধ এবং আরও নিরাপদ। এর অর্থ হচ্ছে বাল্যবিবাহ নির্মূল করতে, মেয়েদের স্কুল থেকে ঝরে পড়া রোধ করতে, নারীদের উদ্যোক্তা হওয়ার পথের সব বাধা দূর করতে এবং নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে আমরা প্রত্যেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

আমি এ জন্য চিন্তিত যে আমরা যদি সময়মতো নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় সহায়তাকারী নীতিগুলো বাস্তবায়ন না করি, তবে ২০৩০ সালের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে আমাদের অগ্রগতি মন্থর হবে। কাজেই আমাদের এখন এমন পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে, যাতে ২০৩০ সালের মধ্যে নারী-পুরুষের পূর্ণাঙ্গ সমতা অর্জিত হয়।

5
স্বাধীনতা ও মানবাধিকার একটি অন্যটির পরিপূরক। মানুষের চিন্তার স্বাধীনতা ও কর্মের স্বাধীনতা জন্মগত অধিকার। স্বাধীনতা সীমাহীন নয়; স্বাধীনতা নির্দিষ্ট সীমারেখার বৃত্তে সংরক্ষিত। যা বিদায় হজের ভাষণে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) তিনটি শব্দে ঘোষণা দিয়েছেন—সব মানুষের জীবন, সম্পদ, সম্মান সংরক্ষিত। যেমন আরাফাতের দিন, আরাফাতের প্রান্তর, মক্কা ভূমি ও কাবা শরিফ সম্মানিত ও সুসংরক্ষিত। (মুসনাদে ইমাম আহমাদ ইবনে হাম্বল রহ.)।

ইসলামের অনুশাসন অনুসরণের জন্য চাই স্বাধীনতা। স্বাধীনতার মাধ্যমেই সুরক্ষিত হয় মানবাধিকার। অর্থাৎ স্বাভাবিক জীবন ও স্বাভাবিক মৃত্যুর নিশ্চয়তা।

আল্লাহ মানুষকে জ্ঞান দিয়েছেন ভালো–মন্দ, সত্য–মিথ্যা ও ন্যায়–অন্যায় অনুধাবনের জন্য। চিন্তা ও কাজের স্বাধীনতা দিয়েছেন কর্ম অনুযায়ী পরকালে বিচার ও ফলাফল প্রদানের নিমিত্তে। কর্মফল অনুসারে জান্নাত বা জাহান্নামের অধিকারী হবে। তাই আল্লাহ এই জগতে মানুষকে কোনো কাজে বাধ্য করেন না। এমনকি ধর্ম–কর্ম বিষয়েও জোর করা হয় না। এ বিষয়ে কোরআন মজিদে রয়েছে, ‘ধর্মে কোনো জবরদস্তি নেই, সত্যাসত্য সুস্পষ্ট পার্থক্য হয়ে গেছে। যারা অশুভ শক্তিকে অস্বীকার করে মহান আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করল; তারা মজবুত হাতল শক্তভাবে ধারণ করল, যা কখনো ভাঙার নয়; আল্লাহ সর্বশ্রোতা মহাজ্ঞানী।’ (সুরা-২ বাকারা, রুকু: ৩৪, আয়াত: ২৫৬)।

সব মানুষের পিতা হজরত আদম (আ.) এবং মাতা মা হাওয়া (আ.)। জগতের সব মানুষ একই পিতা–মাতার সন্তান। সব মানুষ ভাই ভাই, মানুষে মানুষে কোনো ভেদাভেদ নেই। শ্রেণিবিভেদ, জাতি–গোত্র ও গোষ্ঠীভেদ, বর্ণবৈষম্য, ভাষাবৈচিত্র্য এবং ভৌগোলিক ও নৃতাত্ত্বিক পার্থক্য মানুষে মানুষে কোনো প্রভেদ সৃষ্টি করে না। বিদায় হজের ভাষণে নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘কালোর ওপর সাদার প্রাধান্য নেই, অনারবের ওপর আরবের শ্রেষ্ঠত্ব নেই।’ (আল বিদায়া ওয়ান নিহায়া, ইবনে কাসির রহ.)।

Eprothom Aloমানুষের কর্মের প্রকৃত বিচার ও পূর্ণ ফলাফল দুনিয়াতে নয়, পরকালেই মানুষ তার কৃতকর্মের ফল সম্পূর্ণ লাভ করবে ও ভোগ করবে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘কিতাবধারীদের মধ্যে যারা কুফরি করে এবং মুশরিকরা জাহান্নামের অগ্নিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করবে; তারাই সৃষ্টির অধম। নিশ্চয় যারা ইমান আনবে ও সত্কর্ম করবে, তারাই সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ। তাদের প্রতিপালকের কাছে তাদের জন্য পুরস্কার হিসেবে রয়েছে স্থায়ী জান্নাত; যার নিম্নদেশ দিয়ে নদী প্রবাহিত হয়, সেথায় তারা চিরস্থায়ী হবে। আল্লাহ তাদের প্রতি প্রসন্ন এবং তারাও তাঁর প্রতি সন্তুষ্ট। এটি তার জন্য যে তার প্রতিপালককে সমীহ করে।’ (সুরা-৯৮ বায়্যিনাহ, রুকু: ১, আয়াত: ৬-৮)।

ইসলামের মহত্ত্ব ও সৌন্দর্য হলো উদার চিন্তা, যুক্তিনির্ভরতা, পরমতসহিষ্ণুতা, ভিন্ন ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধা ও সহাবস্থান। সর্বোপরি বিশ্বভ্রাতৃত্ব ও সর্বজনীন মানবতাবোধ। ধৈর্য-সহ্য, ক্ষমা, দয়া—এসব মহৎ গুণ ইসলামকে অনন্য করেছে। স্রষ্টায় বিশ্বাস করে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (সা.)–এর অনুপম আদর্শকে ধারণ করাই হলো ইসলাম। ইসলাম জন্মগত ধর্ম নয়। পৃথিবীর যেসব মানুষ ওই বিশ্বাস ও আদর্শ গ্রহণ করবে, তারাই মুমিন ও মুসলিম।

বিশ্বমানবতার মুক্তি, স্বাধীনতা ও মানবাধিকার সুরক্ষার জন্য সব মানুষকে মানবিক গুণাবলিসম্পন্ন হতে হবে। বিশেষত মুমিন মুসলমানদের জন্য এসব গুণে গুণান্বিত হওয়ায় ধর্মীয় বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বিশ্বশান্তি স্থাপন, স্বাধীনতা সুরক্ষা ও মানবাধিকার নিশ্চিত করা মুসলমানের প্রধান দায়িত্ব। আল্লাহ সহায় রয়েছেন, এ মর্মে কোরআন কারিমে বলেছেন, ‘হে বিশ্বাসীরা! তোমরা ধৈর্য ও নামাজের মাধ্যমে সাহায্য প্রার্থনা করো, নিশ্চয়ই আল্লাহ ধৈর্যশীলদের সঙ্গেই আছেন। যারা আল্লাহর পথে নিহত হয় তোমরা তাদের মৃত বলো না, বরং তারা জীবিত কিন্তু তোমরা উপলব্ধি করতে পারো না। আমি তোমাদের ভয়, ক্ষুধা এবং ধনসম্পদ ও জীবনহানি এবং ফল-ফসলের ক্ষয়ক্ষতি দ্বারা পরীক্ষা করব। তুমি সুসংবাদ দাও ধৈর্যশীলদের। যারা তাদের ওপর বিপদ আপতিত হলে বলে—আমরা তো আল্লাহরই এবং নিশ্চিতভাবে তারই নিকট প্রত্যাবর্তনকারী। এরাই তারা, যাদের প্রতি তাদের প্রতিপালকের কাছ থেকে বিশেষ অনুগ্রহ ও রহমত বর্ষিত হয়, আর এরাই সত্পথে পরিচালিত।’ (সুরা-২ বাকারা, আয়াত: ১৫৩-১৫৭)।

প্রিয় নবী (সা.)–এর দাওয়াতি কার্যক্রমে তায়েফের হৃদয়বিদারক ঘটনায় মহানুভবতা ও মক্কা বিজয়ের ক্ষমা ও উদারতা তাঁকে সর্বোচ্চ শিখরে আসীন করেছে, যা সর্বকালের সব মানুষের জন্য অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে অনন্তকাল। মহানবী (সা.)–এর উম্মত হিসেবে সে আদর্শ আমাদেরও অনুসরণ করতে হবে।

মুফতি মাওলানা শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী: বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতির যুগ্ম মহাসচিব ও আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট অব সুফিজমের সহকারী অধ্যাপক

6

চীন
চীন
প্রতিবেশী দেশগুলোকে ঋণ দিয়ে ধীরে ধীরে আগ্রাসনের পথে হাঁটতে শুরু করেছে চীন। আর এটাই চিন্তা বাড়াচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের। সিনেটের আর্মড সার্ভিসেস কমিটির কাছে গত বৃহস্পতিবার পুরো বিষয়টি জানিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মার্কিন জয়েন্ট চিফস অব স্টাফের চেয়ারম্যান জোসেফ ডানফোর্ড। ইকোনমিক টাইমস সূত্রে এ খবর পাওয়া গেছে।

চীনের আর্থিক সহযোগিতায় পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশে গদর বন্দর বানাচ্ছে পাকিস্তান। গদর বন্দরসহ বিভিন্ন নির্মীয়মাণ প্রকল্পের জন্য চীনের কাছ থেকে ১ হাজার কোটি ডলার ঋণ নিয়েছে পাকিস্তান। ডানফোর্ড জানিয়েছেন, এভাবেই প্রতিবেশী দেশগুলোকে ঋণের জালে ফাঁসিয়ে নিজেদের প্রভাব বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠেছে চীন। চীনের এই ঋণনীতি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যে যথেষ্ট প্রভাব বিস্তার করতে পারে, সে সম্ভাবনার কথাও তুলে ধরেছেন ডানফোর্ড।

Eprothom Aloচীনের এই ‘ছদ্মবেশী ঋণনীতি’ সম্পর্কে বলতে গিয়ে শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপের উদাহরণও তুলে ধরেন ডানফোর্ড। সমুদ্রবন্দর বানানোর জন্য চীনের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। পরিবর্তে ওই বন্দর ৯৯ বছর ব্যবহারের জন্য চীনকে ইজারা দেয় শ্রীলঙ্কা। শুধু তা-ই নয়, শর্ত অনুযায়ী বন্দরের ৭০ শতাংশই চীনের আয়ত্তে থাকবে। মালদ্বীপের ক্ষেত্রেও একই নীতি নিয়েছে চীন। মালদ্বীপের কাছে তার পাওনা ১৫০ কোটি ডলার, যা দেশটির মোট দেশজ উৎপাদনের ৩০ শতাংশ।

চীনের ‘বেল্ট অ্যান্ড রোড’ উদ্যোগের প্রধান শরিক হলো ইউরেশিয়া অঞ্চল। রাশিয়া, কাজাখস্তান, তুর্কমেনিস্তান ও তাজিকিস্তানকে চীন তেল ও গ্যাসে ডুবিয়ে দিতে চলেছে—এমন পরিকল্পনার কথা এখন সবার মুখে মুখে। গত কয়েক বছরে রেলপথেও ইউরেশিয়ার কিছু দেশের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করে ফেলেছে চীন। এখন পর্যন্ত এই অঞ্চলে চীনা সামরিক ঘাঁটি বানানোর প্রত্যক্ষ তথ্য কারও হাতে নেই তা ঠিক, কিন্তু জিবুতিতে সেনা ঘাঁটি তৈরির পর ওই সব অঞ্চলেও তারা ঘাঁটি করতেই পারে বলে বিশ্লেষকদের ধারণা।

মার্কিন জয়েন্ট চিফস অব স্টাফের চেয়ারম্যান জোসেফ ডানফোর্ড।
ভারতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ইউরেশিয়া অঞ্চলে নিজেদের প্রভাব বাড়ানোর জন্য সি চিন পিং সরকার বিপুল পরিমাণ পুঁজির সংস্থান করেছে। আর তাতে কাজে লাগানো হচ্ছে চীন ও পূর্ব ইউরোপের ১৬টি দেশ নিয়ে গড়া সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনকে (এসসিও)। লক্ষণীয়, বেশ কিছু পূর্ব ইউরোপীয় দেশ ইউরোপীয় ইউনিয়নেরও (ইইউ) সদস্য।

 জর্জ বুশের সময় যুক্তরাষ্ট্রের যে রকম সক্রিয় মধ্য এশিয়া নীতি নিয়ে ছিল, ডোনাল্ড ট্রাম্পের জমানায় তা অনেকটাই অনুপস্থিত। মনে করা হচ্ছে, সিরিয়া ও আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের পর মার্কিন বুটের ছাপ আরও কমবে ওই এলাকায়। আর চীনের সবচেয়ে বড় মিত্র হলো রাশিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের মাথাব্যথার এটাই মূল কারণ বলে বিশ্লেষকেরা মনে করেন।

বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বন্ধুত্বের হাত বাড়াচ্ছে চীন। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে দক্ষিণ এশিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তেও নিজেদের প্রভাব বাড়াচ্ছে চীন। ডানফোর্ড তাই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, এখনই যদি চীনের এই ছদ্মবেশী ঋণনীতি গুরুত্বসহকারে আমলে না নেওয়া হয়, তা হলে এর প্রভাব যুক্তরাষ্ট্রের ওপরও পড়তে পারে।

7
আগামী পাঁচ বছরে দেড় কোটি মানুষের কর্মসংস্থানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে নতুন সরকার। অর্থাৎ প্রতিবছর গড়ে ৩০ লাখ লোককে কাজ দিতে হবে। সরকার দেশের বিশাল তরুণ জনগোষ্ঠীকে বেকারত্ব ঘোচানোর স্বপ্ন দেখাচ্ছে। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন।

Eprothom Aloপরিসংখ্যান বলছে, গত ১৫ বছরে ১ কোটি ৪৫ লাখ লোক কাজ পেয়েছেন। এখনো প্রায় ১ কোটি লোক বেকার বা ছদ্মবেকার। তার ওপর প্রতিবছর ২০-২২ লাখ মানুষ কাজের খোঁজে শ্রমবাজারে ঢুকছেন।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ চারটি শ্রমশক্তি জরিপ পর্যালোচনা করে এই চিত্র পাওয়া গেছে। ২০০২ থেকে ২০১৭ সালের মধ্যে এই জরিপগুলো করা হয়েছে। জরিপের তথ্য অনুযায়ী, ওই ১৫ বছরে প্রতিবছর গড়ে ৯ লাখ ৬৬ হাজার নতুন কর্মসংস্থান হয়েছে। তবে ২০১৩ থেকে ২০১৭ সময়কালে এটা বছরে গড়ে পৌনে ৭ লাখে নেমে গিয়েছিল।

সুতরাং সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে হলে এখনকার চেয়ে চার গুণের বেশি কাজের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। উদ্যোক্তা ও অর্থনীতিবিদেরা সে ক্ষেত্রে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের কথা বলছেন। এগুলো হলো শিক্ষিত ও স্বল্পশিক্ষিত জনগোষ্ঠীর জন্য উপযুক্ত কাজ সৃষ্টি করা, সেই কাজের উপযোগী মানবসম্পদ তৈরি করা এবং বাজারমুখী শিক্ষায় বিনিয়োগ বাড়ানো।

দেশের শীর্ষ পর্যায়ের শিল্পগোষ্ঠী এ কে খান গ্রুপের পরিচালক ও ঢাকা চেম্বারের সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কোন কোন খাতে কোন ধরনের কত লোক প্রয়োজন—এ নিয়ে কেউ কখনো সমীক্ষা করেনি। আমি মনে করি, সারা দেশের ১ হাজার কোম্পানির আগামী পাঁচ বছরে কী ধরনের কত লোক লাগবে, তা নিয়ে একটি সমীক্ষা করা উচিত। দক্ষ লোকের চাহিদা অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো জনবল তৈরি করতে পারবে।’

বিবিএসের সর্বশেষ শ্রমশক্তি জরিপ অনুযায়ী, ২০১৭ সালে সারা দেশে ৬ কোটি ৩৫ লাখ কর্মক্ষম (১৫–৬৫ বছর বয়সী) মানুষ ছিলেন। তবে ৬৫ বছরের বেশি বয়সী কিছু মানুষও কাজে নিযুক্ত থাকেন। কর্মক্ষম মানুষদের হিসাবে তাঁদেরও ধরা হয়।

২০১৭ সালে কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর ৬ কোটি ৮ লাখ নারী-পুরুষের কাজ ছিল। বাকি ২৭ লাখ ছিলেন বেকার। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) মাপকাঠি অনুসারে বেকার তাঁরাই, যাঁরা সপ্তাহে এক ঘণ্টাও মজুরির বিনিময়ে কাজ করেন না। আবার বিবিএস বলছে, কেউ সপ্তাহে ৪০ ঘণ্টা কাজের সুযোগ না পেলে তাঁর সম্ভাবনা পুরোপুরি ব্যবহৃত হয় না। এমন কর্মজীবীদের ছদ্মবেকার বলা যায়। দেশে এমন মানুষের সংখ্যা প্রায় ৬৬ লাখ।

ছদ্মবেকারদের দুই-তৃতীয়াংশের বয়স ১৫ থেকে ২৯ বছরের মধ্যে। তাঁরা পছন্দমতো কাজ না পেয়ে টিউশনি, রাইড শেয়ারিং, বড় দোকানের খুচরা বিক্রয়কর্মী, কল সেন্টারে কর্মীসহ বিভিন্ন ধরনের খণ্ডকালীন কাজ করছেন।

২০১৭ সালে বেকার ও ছদ্মবেকার মিলে ভালো কাজের জন্য উন্মুখ হয়ে ছিলেন প্রায় ৯৩ লাখ মানুষ। গত বছর কর্মক্ষম জনগোষ্ঠী বেড়েছে। কর্মসংস্থানের প্রবণতা আমলে নিলে সরকারকে এখনই অন্তত ১ কোটি মানুষের জন্য সপ্তাহে কমপক্ষে ৪০ ঘণ্টার কাজের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা কার্যালয়ের মুখ্য অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন জোর দিচ্ছেন তিনটি বিষয়ের ওপর। এগুলো হলো শিক্ষিত তরুণদের উপযোগী শোভন কাজের সুযোগ সৃষ্টি, উৎপাদনশীলতা বাড়িয়ে আয় বাড়ানো এবং চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমশক্তি তৈরি করা।

প্রবাসেও প্রতিবছর বিপুল কর্মসংস্থানের সুযোগ আছে। গত বছর ১০ লাখ লোক বিদেশে কাজ করতে গেছেন। এর আগের বছর গিয়েছিলেন সাড়ে ৭ লাখ। কিন্তু প্রতিবছর কত লোক ফিরে আসেন, সরকারে কাছে সেই তথ্য নেই। বিদেশে প্রকৃত কর্মসংস্থানের হিসাব তাই করা কঠিন।

বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ জাহিদ হোসেন বলছেন, ‘অর্থনীতিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে। শিল্প ও সেবা খাতের মতো দক্ষ শ্রমনির্ভর খাতে বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে। এতে উচ্চশিক্ষিত ও মধ্যম শিক্ষিত লোকের কর্মসংস্থান হবে।’

২০২০ সাল থেকে অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে সরকার। এই পরিকল্পনা তৈরি করছে পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগ (জিইডি)। জিইডির সদস্য শামসুল আলম বলছেন, বাড়তি কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে বাজারমুখী শিক্ষা, বিশেষ করে কারিগরি শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এ জন্য বাজেটে বরাদ্দ বাড়বে।

শামসুল আলমও বিনিয়োগ বাড়ানোকে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন। তিনি অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিনিয়োগের সম্ভাবনা দেখছেন। তিনি বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের বাণিজ্য যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও বাংলাদেশের দিকে ঝুঁকতে পারেন।

আওয়ামী লীগের ইশতেহার
গত নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ নির্বাচনী ইশতেহারে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে তরুণদের প্রাধান্য দিয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ২০২৩ সালের মধ্যে দেড় কোটি নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা হবে। ওই সময়ের মধ্যে নতুন করে প্রায় ১ কোটি ১১ লাখ তরুণ-তরুণী শ্রমশক্তিতে যুক্ত হবে।

নির্বাচনী ইশতেহারে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে যে স্বল্প, মধ্যম ও উচ্চশিক্ষিত তরুণদের তথ্যসংবলিত একটি সমন্বিত তথ্য-উপাত্ত ভান্ডার তৈরি করা হবে। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের প্রয়োজন এবং তরুণদের যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরির জন্য আবেদনের আহ্বান জানাতে পারবে। এ ছাড়া দক্ষতা বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য দুটি নতুন প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে।

‘কর্মঠ প্রকল্প’-এর অধীনে স্বল্পশিক্ষিত, স্বল্প দক্ষ, অদক্ষ তরুণদের শ্রমঘন, কৃষি, শিল্প ও বাণিজ্যের উপযোগী জনশক্তি হিসেবে গড়ে তোলা হবে। ‘সুদক্ষ প্রকল্প’-এর অধীনে দক্ষ শ্রমিকের চাহিদা ও জোগানের ভারসাম্যহীনতা দূর করা হবে।

২০৩০ সালের মধ্যে সারা দেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) বলছে, এসব অর্থনৈতিক অঞ্চল হলে প্রায় ১ কোটি লোক চাকরি পাবেন। চলতি বছরে চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চল বিনিয়োগের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। ওই চারটি অর্থনৈতিক অঞ্চল হলো চট্টগ্রামের বঙ্গবন্ধু শিল্পনগরী, মৌলভীবাজারের শ্রীহট্ট অর্থনৈতিক অঞ্চল, চট্টগ্রামের আনোয়ারার চীনা অর্থনৈতিক অঞ্চল ও খুলনা অর্থনৈতিক অঞ্চল।

এ ছাড়া দক্ষ শ্রমশক্তি গড়ে তুলতে প্রায় সব জেলায় কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরি করা হয়েছে। এখন উপজেলা পর্যায়ে কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দেশে বিদেশে চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠন করা হয়েছে।

শোভন কাজের জন্য দক্ষ জনগোষ্ঠী তৈরি করতে তিন কিস্তিতে ৭৫ কোটি ডলার বা ৬ হাজার ১৫০ কোটি টাকা বাজেট সহায়তা দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। ইতিমধ্যে প্রথম কিস্তির জন্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এই অর্থ দিয়ে একটি সমন্বিত কর্মসূচি নেওয়া নেওয়া হবে।

ছদ্মবেকার ও মনমতো কাজ
তবে ছদ্মবেকারদের চিত্র বলছে, পছন্দসই মানসম্মত কাজ এবং যথোপযুক্ত দক্ষ কর্মীদের সমন্বয় ঘটানোর কাজটি সহজ হবে না। জীবিকার তাগিদে এখন যে প্রায় ৬৬ লাখ কর্মক্ষম মানুষ খণ্ডকালীন কাজ করছেন, তাঁরা ভালো কাজের প্রত্যাশী। ছদ্মবেকারদের মধ্যে নারীরা সংখ্যায় বেশি, সাড়ে ৩৪ লাখ।

নারী-পুরুষ মিলিয়ে প্রতি তিনজনে দুজনই কমপক্ষে মাধ্যমিক পাস। ৬ লাখ ৬৫ হাজার ছদ্মবেকার স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়েও পছন্দমতো চাকরি পাচ্ছেন না। আবার মাধ্যমিক বা উচ্চমাধ্যমিক পাস করে ছদ্মবেকার, এমন নারী-পুরুষের সংখ্যা সাড়ে ৩৭ লাখ। এই শিক্ষিত ছদ্মবেকারেরা খণ্ডকালীন কাজ করে ভালো চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছেন বা অপেক্ষা করছেন।

অন্যদিকে চাকরিদাতারা উপযুক্ত কর্মীর আকালের কথা বলছেন। শিল্প উদ্যোক্তা আবুল কাশেম খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘অনেক বছর ধরেই আমরা চাহিদা অনুযায়ী লোক পাচ্ছি না। বিশেষ করে মধ্যম পর্যায়ের কর্মীদের ক্ষেত্রে দক্ষ লোক পাওয়া যাচ্ছে না। এ জন্য ভারত, শ্রীলঙ্কা থেকে লোক আসছে এখানে। অর্থনীতির পরিসর বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে দক্ষ লোকের ঘাটতি আরও বাড়ছে। বিদ্যমান শিক্ষাব্যবস্থা চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ লোকের জোগান দিতে পারছে না।’

8
অ্যারিস্টটল থেকে শুরু করে প্রায় সব দার্শনিকই বলেছেন, টাকা দিয়ে সুখ কেনা যায় না। তবে টাকা সুখ লাভে সহায়তা করে। ২০০৫ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের জরিপকারী সংস্থা গ্যালাপ বিভিন্ন দেশের মানুষকে জিজ্ঞেস করেছে, তাঁদের জীবন কতটা সন্তোষজনক। ফলাফলে দেখা গেছে, যে দেশ যত ধনী, সেই দেশের মানুষের সুখ তত বেশি।

 পরিসংখ্যানে রূপান্তর করলে দেখা যায়, সুখের সঙ্গে টাকার আন্তসম্পর্ক আছে। অর্থাৎ মাথাপিছু মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) দ্বিগুণ হলে মানুষের সন্তোষের মাত্রা শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ বাড়ে।

Eprothom Aloতবে ব্যাপারটা সরল অঙ্কের মতো বলে দেওয়া যায় না যে দেশ ধনী হলে মানুষের সুখও বাড়বে। ১৯৭৪ সালে অর্থনীতিবিদ রিচার্ড ইস্টারলিন দেখেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানুষের গড়পড়তা সন্তোষের মাত্রা ১৯৪৬ থেকে ১৯৭০ সালের মধ্যে স্থবির হয়ে পড়েছে, যদিও এই সময়ে মাথাপিছু জিডিপির পরিমাণ ৬৫ শতাংশ বেড়েছে। তিনি অন্যান্য দেশেও এই দুটি বিষয়ের মধ্যকার সম্পর্কে ভিন্নতা দেখতে পান। তবে এটা ঠিক, অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ্য না থাকলে মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হলেই মানুষের সুখ নিশ্চিত হবে, তার নিশ্চয়তা নেই।

তবে ইস্টারলিনের এই আপাত–স্ববিরোধ মডেল নিয়ে অনেক তর্ক-বিতর্ক হয়েছে। অনেক অর্থনীতিবিদের দাবি, উন্নত মানের তথ্য–উপাত্ত ব্যবহার করে তাঁরা অর্থনৈতিক উন্নতির সঙ্গে ক্রমবর্ধমান সুখের যোগ খুঁজে পেয়েছেন। ২০ মার্চ ওয়ার্ল্ড হ্যাপিনেস রিপোর্ট বা বৈশ্বিক সুখ প্রতিবেদনে সর্বশেষ গ্যালাপ জরিপের তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। এতে উভয় পক্ষই লড়াই চালিয়ে যাওয়ার মতো রসদ পেয়েছে। কিন্তু সামগ্রিকভাবে এর মাজেজা হলো, এই আপাত–স্ববিরোধ জীবন্ত আগ্নেয়গিরির মতো জীবিত আছে।

এবার কিছু বাস্তব উপাত্ত দিয়ে ব্যাপারটা দেখা যাক। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য উদাহরণ হচ্ছে চীন। চীনের মাথাপিছু জিডিপি গত এক দশকে দ্বিগুণ হয়েছে, তা ঠিক। কিন্তু গড়পড়তা সুখের মান মাত্র শূন্য দশমিক ৪৩ পয়েন্ট বেড়েছে। সুখ একই হারে না বাড়লেও সেখানে সুখ ও সমৃদ্ধি মোটামুটি হাত ধরাধরি করে চলছে। ধনী দেশগুলোর মধ্যে জার্মানির জিডিপি ও সুখ উভয়ই গত ১০ বছরে বেড়েছে। ভেনেজুয়েলা একসময় বিশ্বের পঞ্চম সুখী দেশ হলেও অর্থনৈতিক দুর্দশার সঙ্গে তার সুখও পালিয়েছে।

বিভিন্ন দেশের উদাহরণে দেখা যায়, প্রবৃদ্ধির সঙ্গে ক্রমবর্ধমান সুখের আন্তসম্পর্ক আছে। তবে এই আন্তসম্পর্ক খুবই দুর্বল। দ্য ইকোনমিস্ট–এর কাছে যে ১২৫টি দেশের উন্নত মানের তথ্য-উপাত্ত আছে তাতে দেখা যায়, ৪৩টি দেশে মাথাপিছু জিডিপি ও সুখের সম্পর্ক বিপরীতধর্মী।

অন্যদিকে চীনের মতো ভারতও দ্রুত উন্নয়নশীল দেশ। গত ১০ বছরে দেশটিতে মাথাপিছু জিডিপির পরিমাণ ৮০ শতাংশ বেড়েছে। কিন্তু এই সময়ে দেশটিতে গড়পড়তা সুখের মাত্রা ১ দশমিক ২ শতাংশ কমেছে। দ্য ইকোনমিস্ট–এর চোখে যা উল্লেখযোগ্য। ইস্টারলিনের গবেষণার প্রথম ক্ষেত্র ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে আবারও দেখা গেছে, গত বছর দেশটির প্রবৃদ্ধি ভালো হলেও সুখের মাত্রা কমেছে। ইউরোপের বেলায়ও একই কথা প্রযোজ্য। এই মহাদেশে মানুষের সন্তোষের মাত্রা অনেক উঁচুতে তা ঠিক, তবে সমৃদ্ধি অব্যাহত থাকলেও সেখানকার মানুষের সন্তোষের মাত্রা কমছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো আরও যেসব দেশে জিডিপি প্রবৃদ্ধির সঙ্গে মানুষের সুখ কমেছে সেগুলো হলো: কানাডা, জাপান, নেদারল্যান্ডস, জাপান, সুইডেন,দক্ষিণ আফ্রিকা ইত্যাদি।

 দ্য ইকোনমিস্ট বলছে, সারা পৃথিবীর মানুষ এই দুই শিবিরে প্রায় সমানভাবে বিভক্ত: সুখের সঙ্গে টাকার সম্পর্ক আছে বা টাকার সঙ্গে সুখের সম্পর্ক নেই।

9
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ‘একসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে হাসি–তামাশা করা হতো। আজ পৃথিবীর অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে ডিজিটাল বাংলাদেশ। আমরা আজ যে অবস্থায় আছি, পরবর্তী পাঁচ বছরের জন্য আরও বেশি করে ভাবতে হবে।’

সম্প্রতি রাজধানীর বসুন্ধরায় আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটিতে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি খাতের প্রদর্শনী বেসিস সফটএক্সপো ২০১৯–এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

Eprothom Aloমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন ১৮০টি দেশে সফটওয়্যার রপ্তানি করছে। আইওটি পণ্য আমরা সৌদি আরবে রপ্তানি করছি। প্রযুক্তিতে আগামী পাঁচ বছরে বিশ্বের মধ্যে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে থাকবে। ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে প্রযুক্তির বিস্ময়কর আবিষ্কার ৫জি যুগে প্রবেশের প্রস্তুতি ইতিমধ্যেই আমরা শুরু করেছি।’

মোস্তাফা জব্বার বলেন, প্রযুক্তির বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সফটওয়্যার ও ডিজিটাল ডিভাইস প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সংগঠন, তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও উদ্ভাবকদের ৫জির সঙ্গে সম্পৃক্ত প্রযুক্তি বিশেষ করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবোটিকস, বিগ ডেটা, আইওটি ও ব্লক চেইন প্রযুক্তির ওপর নিজেদের আরও দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে।

গত ১০ বছরে অর্থনীতিতে বাংলাদেশের সফলতাকে অভাবনীয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। ৫৬৫ ডলারের মাথাপিছু আয়ের বাংলাদেশ গত ১০ বছরে ১ হাজার ৯০৯ ডলারের মাথাপিছু আয়ের বাংলাদেশে উন্নীত হয়েছে। এ বছর ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ জিডিপি অর্জিত হয়েছে। কিন্তু আমরা এমন একটা সময়ে উপনীত হয়েছি, যখন ডিজিটাল যন্ত্র উৎপাদনের বিষয়টি অনেক সম্ভাবনাময় হয়ে উঠেছে।’

10
Story, Article & Poetry / একান্ত অনুভূতি
« on: February 27, 2019, 08:18:55 PM »
বাবা, আজ তোমাকে অনেক বেশি মনে পরতেছে। তোমাকে নিয়ে, স্মৃতিচারণ করার মত বেশি স্মৃতি আমার ঝুলিতে নেই। তবে তোমার মুখভর্তি সাদা দারি যুক্ত হাসিমাখা মুখ খানি অনেক মনে আছে। মনে আছে, সেইদিনের রাগ, যেদিন আমি যেতে চাইনি জামালপুর। কত পরিমান রাগ থাকতে পারে তা স্বচক্ষে না দেখেলে কেউই বুজতে পারবে না। আমি সেদিন দেখেছিলাম তোমার চোখে আমার জন্য উদ্ধিগ্নতা, যেদিন আমি পানিতে পরে গিয়ে হাবু-ডুবু খাচ্ছিলাম আর সেদিনই আমি পেয়েছিলাম তোমার আসল ভালবাসা। সত্যি বলতে কি, সেই ভালবাসাটা আমি খুবই উপভোগ করেছিলাম।
পৃথিবীর বাস্তবতা বুঝতে পারার আগেই তুমি আমায় রেখে কোন অদুরে চলে গেলে? অনেক কষ্ট পেয়েছিলাম কিন্তু কি হারিয়েছে ওই মুহুর্তে বুঝতে পারিনি। আজ ঠিক তা হাড়ে হাড়ে বুজতেছি।

জানো বাবা!! মাঝে মাঝে খুবই কষ্ট হয় যখন দেখি সাথের কোন বন্ধুর বাবা তার ছেলেকে নাম ধরে ডাক দিয়ে কথা বলে। ওই কষ্টটা কোন সময় যে আমার চোখটাকে ভারি করে দেয় তা বুঝতেই পারি নাহ।

তোমার চলে যাওয়ার ঠিক ৩ দিন পর, ১৬ই ফেব্রুয়ারি ২০০৬, বাড়ির কেউ একজন বলাবলি করছিল যে ছেলেটা এতিম হয়ে গেল। কথাটা আমার কোনভাবেই ভাল লাগেনি কিন্ত আজ ঠিকই মনে হচ্ছে, আমি এতিম! আমি এতিম!! আমি এতিম!!! তুমি নেই, তাই আমি অনেক কিছু ছুয়েও ছুতে পারিনি। আমি গ্যারান্টি দিয়া বলতে পারি, তুমি থাকলে আমি সব কিছুই ছুতে পারতাম। প্রত্যেকটা কাজে আমি তোমার অভাব পাই। যেই অভাব কোন ভাবেই পুরন করার নয়।

মজার আরেকটি কথা কি জান!!! তোমার সবগুলি গুনাবলি আমার মধ্যে আছে (সবাই বলে) যেমনঃ রাগ করলে চুপ করে থাকা, মুখ গম্ভির করে রাখা, কথা কম বলা, লজ্জায় মানুষকে কিছু বলতে না পারা, কষ্ট নিজের মধ্যে লুকিয়ে রাখা আরও হয়তো অজানা অনেক কিছু।
বাবা, ওপার থেকে তুমি আমায় সাহস দিও, যা বেচে থাকলে দিতে। তোমায় অনেক অনেক মনে পরে😥😥😥। ভাল থেকো বাবা আর আমায় সব সময় দূর থেকে সাহস দিও।।।
তোমারই একমাত্র বাবাহারা ছেলে!!!

11
Technology is the main theme in the modern era. It makes our life comfortable. Sometimes, it becomes blessings and curse for human life. Most of the sides are useful and I am agreed for this.

In our general life, firstly, electricity is a precious invention. Without this, life will be stuck. Computer, mobile phone, x-ray machine and most importantly the contribution of Google make our life easier. Nowadays, in medical science, incurable diseases have become curable. General people are getting medical service within the countries, need not visit another country spending a huge amount. In the concern of internet, the education system has been changed. Students are getting online or blended learning services from far away countries. Due to the improvement of online communication services, business and online banking become easier.

In spite of having a lot of merits of technology, human life has become insecure. Every kind of online system, people have to use a personal password, here is the possibility to be hacked though this is not maintaining by himself. Personal privacy has been lost. Among the young generation, especially the high school students misuse the mobile phone. They visit online in the prohibited sites which effects on social norms and morality. Nuclear energy is threatened for human life. Most of the rich countries are using nuclear energy for destructive activities. Civilian people are living in insecure life.

After all, everything has both consequences, both good and bad side. The result depends on the proper uses of modern technology. The earth becomes peaceful and living place by the proper use of technology.

12
Alumni / Information of DIU CSE Alumni Form
« on: October 02, 2018, 01:44:25 AM »
Dear CSE Alumni,

Department of Computer Science and Engineering of Daffodil International University is seeking your mentorship for mobilizing fresh graduates, removing industry-academia gap and career guidance to your juniors. You are requested to fill up the attached google form (https://goo.gl/vd54KZ) to share your particulars so that we can make a strong bonding with you. Further, our department wants to organize regular events like seminar, workshop, career talk etc. to have feedback from you and prepare your juniors for the competitive industry. Besides, we want to share our department's contribution towards students and graduates. We also want to support those who are not satisfied with their current position and looking for next career opportunities. We hope our combined effort will make the difference.

Thank you for your continuous support.

Google form link: https://goo.gl/vd54KZ

13
বেপরোয়া গাড়ির গতি আর মানুষের মৃত্যু এখন নিত্যদিনের সঙ্গী হয়ে উঠেছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে তিন হাজার ২৬ জন। আহত হয়েছে আট হাজার ৫২০ জন। এ ছয় মাসে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৮৬০টিরও বেশি। এভাবে প্রতিদিন কোনো না কোনো সড়ক দুর্ঘটনা হচ্ছে। এ সড়ক দুর্ঘটনা আর বেপরোয়া গাড়ি চালানো নিয়ে সব পত্রিকায় লেখালেখি হয়েছে এবং হচ্ছেও। সড়ক নয় যেন নরক, সব অনিয়ম, নৈরাজ্যের শীর্ষে গণপরিবহন, দুর্ঘটনা নয় যেন হত্যাকাণ্ড চলছে। আর কত রাজীবকে প্রাণ দিতে হবে, আমরা জানি না। ফিটনেসবিহীন গাড়ি এভাবেই চলছে প্রতিদিন। কোনো প্রতিকারও হচ্ছে না। সড়ক দুর্ঘটনা চলছে নিয়মিতভাবে। গাড়ির মরণগতিও থামছে না। আর মনে হয় না থামবে। গাড়িচালকের আচরণ দেখলে মনে হয়, এসব চলছে আর চলবে। এটা তাদের জন্মগত অধিকার। তারা অধিকার রক্ষা করার জন্যই সড়কে নামে। তারা বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালাতে থাকে। এতে তাদের কিছুই হবে না। কিছুই হয়ও না, তা সত্যি। সড়ক দুর্ঘটনাজনিত মামলাও কম হয়নি। কাজ হয়নি। দুর্ঘটনার পর দায়ী চালকদের বড় অংশই পার পেয়ে যায় পুলিশ ও যানবাহন মালিকদের গোপন সমঝোতায়। উপযুক্ত আইন করে সঠিকভাবে তা বাস্তবায়িত হলে চালকদের বেপরোয়া গতি এবং সড়কে মৃত্যু মিছিল কমবে। এর জন্য প্রয়োজন উপযুক্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা। দেশের মানুষের জন্যই সরকার। তাদের সুখে-দুঃখে পাশে থাকার জন্যই ভোট দিয়ে সরকার নির্বাচন করে জনগণ। সেই জনগণ সড়কে প্রাণ হারালে তার দায়ভার সরকারের নিতে হবে। সরকারকে এ বিষয়ে ভাবতে হবে। এ বিষয়ে জরুরি সমাধান আশা করছি।

আজহার মাহমুদ


14
জাতীয় বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে নারীদের উদ্ভাবনগুলো তুলে ধরতে যৌথভাবে ‘উইমেন্স ইনোভেশন ক্যাম্প ২০১৮’ আয়োজন করছে গ্রামীণফোন হোয়াইট-বোর্ড এবং অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রকল্প। উদ্ভাবনী এ প্রতিযোগিতায় সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের ধারণা জমা দিতে হবে। বাস্তবায়নের উপযোগী সেরা উদ্ভাবনী ধারণাগুলো নিয়ে হবে মূল প্রতিযোগিতা। সেরা ধারণাগুলোকে পুরস্কার দেওয়ার পাশাপাশি বাস্তবায়নে সহায়তাও করা হবে। সমস্যা শনাক্ত এবং প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সেগুলোর সমাধানের পদ্ধতি জানতেই এ উদ্যোগ। যেকোনো নারী ব্যক্তিগত বা প্রতিষ্ঠানের হয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে।

http://www.amardesh.com/daily-kalerkantho-bangla-newspaper.php

15
বাংলাদেশ একটি অপার সম্ভাবনাময় দেশ। এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশ খুব দ্রুতই সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও তাইওয়ানের চেয়ে উন্নত দেশে পরিণত হবে বলে মনে করেন মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তফা কামাল। এ জন্য নিজের প্রবল ইচ্ছাশক্তি, মেধা ও পরিশ্রমকে ব্যবহার করতে তরুণ শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন এই শিল্পোদ্যোক্তা।

গতকাল সোমবার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি মিলনায়তনে ‘উদ্যোক্তা উন্নয়ন বিষয়ক ডিআইইউ ইন্ডাস্ট্রি একাডেমিয়া বক্তৃতামালা’ অনুষ্ঠানের ১৩তম পর্বের বক্তৃতায় প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন বাংলাদেশে নিযুক্ত কোরিয়া দূতাবাসের সেকেন্ড সেক্রেটারি চো মিং ইয়ং, মেঘনা গ্রুপের পরিচালক ও মোস্তফা কামালের বড় মেয়ে তাহমিনা মোস্তফা, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ড. ইউসুফ এম ইসলাম ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যারিয়ার ডেভেলপমেন্ট সেন্টারের পরিচালক মো. আবু তাহের খান।
উদ্যোক্তা হওয়ার পথে দীর্ঘ সংগ্রামের গল্প বলতে গিয়ে মোস্তফা কামাল বলেন, ‘মাত্র ১৭৫ টাকা পুঁজি নিয়ে ব্যবসায় নেমেছিলাম। এখন মেঘনা গ্রুপের বার্ষিক টার্নওভার দুই বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। এই সফলতার পথ মোটেও মসৃণ ছিল না। কঠোর পরিশ্রম করতে হয়েছে। দিনে ১৮ ঘণ্টারও বেশি কাজ করেছি।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে মোস্তফা কামাল বলেন, ‘তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগে হাতের নাগালেই সব পাওয়া যায়। ঘরে বসেই অক্সফোর্ড, হার্ভার্ড, কেমব্রিজের বই পড়া যায়। অথচ আমাদের সময় ভালো বই ছিল দুর্লভ। বড় ভাইদের কাছ থেকে বই ধার নিয়ে পড়তে হতো। পড়ালেখার জন্য হেঁটে যেত হতো সাত মাইল দূরের স্কুলে। এখন প্রযুক্তি তোমাদের হাতের মধ্যে অনেক সুযোগ-সুবিধা এনে দিয়েছে। এসব সুযোগকে কাজে লাগাও। তাহলে সফল হতে পারবে।
কাজ করার ইচ্ছাই প্রধান উল্লেখ করে দেশবরেণ্য এই উদ্যোক্তা আরো বলেন, উদ্যোক্তা হতে হলে প্রবল ইচ্ছাশক্তি থাকতে হবে। ইচ্ছার ওপর ভর করে সাহসিকতার সঙ্গে ঝুঁকি নিতে হবে। ব্যর্থ হওয়ার ভয়ে কাজ করা থেকে বিরত থাকলে কখনো সফল হওয়া যাবে না। নিজেই নিজের শিক্ষক হতে হবে এবং নিজেকে গাইড করতে হবে। এ সময় তিনি উদ্যোক্তা হতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের তিনটি পরামর্শ দিয়ে বলেন, কথা দিয়ে কথা রাখা, সততা এবং মানুষকে সম্মান করতে জানলে সফলতা আপনা-আপনি চলে আসে।

বাবার সম্পর্কে বলতে গিয়ে বড় মেয়ে তাহমিনা মোস্তফা বলেন, ‘বাবাই আমার জীবনের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা। তিনি কঠোর নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্যে আমাদের বড় করেছেন। সেই ছোটবেলায় নিয়মগুলো অসহ্য মনে হলেও এখন বুঝতে পারি ওই নিয়মগুলো আমার জীবনে সফলতা এনে দিয়েছে।’

তাহমিনা মোস্তফা আরো বলেন, ‘বাবা যেকোনো পরিস্থিতে স্বাভাবিক থাকেন। কোনো কিছুতেই বিচলিত হন না। এই বিরল গুণ আয়ত্ত করা খুবই কঠিন।’ বাবার এই বিরল গুণ তিনি আয়ত্তে আনার চেষ্টা করে যাচ্ছেন বলে জানান।
স্বাগত বক্তৃতায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান বলেন, ‘বিশ্বের উন্নত দেশগুলো তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজ দেশের সফল উদ্যোক্তাদের নানাভাবে সম্পৃক্ত রাখে। কিন্তু আমাদের এই সংস্কৃতি গড়ে ওঠেনি। ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় চেষ্টা করছে এই সংস্কৃতি গড়ে তোলার।’ কারণ হিসেবে ড. মো. সবুর খান বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের সঙ্গে আমাদের দেশের সফল উদ্যোক্তাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া আমাদেরই দায়িত্ব। তাদের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। তারা কিভাবে উদ্যোক্তা হলেন সেই গল্প শুনলে তরুণরা অনুপ্রাণিত হবে। এই উদ্দেশ্য থেকেই ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি ইন্ডাস্ট্রি একাডেমিয়া লেকচার সিরিজ আয়োজন করে আসছে।’

ড. মো. সবুর খান আরো বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রি যে ধরনের লোকবল চায়, সে ধরনের লোকবল আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সরবরাহ করতে পারছে না। কারণ ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কোনো সম্পর্ক নেই। এই সম্পর্ক তৈরি করতে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি কাজ করছে।’

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ইন্ডাস্ট্রি একাডেমিয়া লেকচার সিরিজের বক্তব্যগুলো নিয়ে পরবর্তী সময়ে একটি বই প্রকাশিত হবে। লেকচার সিরিজে আমন্ত্রিত উদ্যোক্তাদের ওপর ডিআইইউ থেকে প্রামাণ্য চিত্রও নির্মিত হবে।
Source: http://www.amardesh.com/daily-kalerkantho-bangla-newspaper.php

Pages: [1] 2 3 ... 7