Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Rubaiya Hafiz

Pages: [1] 2 3 ... 7
1
AI (Artificial Intelligence) and AN (Artificial Intuition) are the buzz words of the computer science world. Interestingly, these two technologies are aficionados of human intelligence and are constructed to assist the human race in its overall growth and progress. To understand how they help us, humans, in various sectors, how these technologies are different, and how blockchain can use and push them to greater heights, we have written this article to present an interesting perspective on the topic. Let us start with understanding AI (Artificial Intelligence) and AN (Artificial Intuition) first and then dive into their interrelations.

What is Artificial Intelligence (AI) in the first place?
Artificial Intelligence or AI is an umbrella term that covers many aspects of machine intelligence. Therefore, any device which is capable of perceiving its environment and is able to take related required actions towards a set goal will come under AI. One can say that in a way, AI is, to an extent mimicking the cognitive functions of human intelligence, such as learning, retaining memories, solving complex problems, etc. The authors of the book- ‘Artificial Intelligence: A Modern Approach,’ Stuart Russell and Peter Norvig suggest that historically AI is defined to constitute:

Thinking humanly
Thinking rationally
Acting humanly
Acting rationally
Defining Artificial Intuition (AN):
Simply put, there is a form of intelligence that exists beyond logical intelligence and skill-set. In a human being, it is called intuition. It’s the same intuition that enables us to understand if a stack of Oreos is unstable and may fall, even when we don’t know the physics and mathematical formulae that govern balance and imbalance. Artificial Intuition is the next stage that comes after Artificial Intelligence.

Artificial Intuition is a result of using a sensible direction that makes use of many micro-skills, memories, skill-set nested together. In computers, intuition is surprisingly easy to implement. But it requires a huge memory space. This challenge naturally gushes us towards the help the blockchain technology can offer. Like AI is an important building block in AN, AN can be an integral part of the blockchain technology. In this article, we will see how these technologies can be mutually beneficial and how blockchain is pushing both of these technologies.

The transformational power of the blockchain technology for AI and AN:
Blockchain technology has disrupted many industries such as the finance sector, healthcare, business logistics, security, education, food supply, etc., for good. AI and AN are also in line for this constructive disruption, as the blockchain technology offers safer, faster, more transparent, zero tolerance for frauds, cost-effective, risk management strength, etc. Scientists and experts are working hard to incorporate the power of blockchain technology into AI and AN sectors too. Merging AI (Artificial Intelligence) and AN (Artificial Intuition) with the blockchain technology can result is great analyzing power of AN and transparency of blockchain technology. The ways in which the blockchain technology can transform these technologies are simply min-blowing. Let’s look at it here:

The peer-to-peer system of the blockchain technology can feed AN & AI with ample data source:
The effectiveness of AI (Artificial Intelligence) and AN (Artificial Intuition) hinges on the amount of data that is available to them. The current access to data through means such as Google, Facebook, Amazon, and other similar social platforms, is beneficial to the development of the AI and AN, but it comes with a limitation. Moreover, this data is not available on the market.

Blockchain technology, with its peer-to-peer system, can solve this issue. Given everything is open on the ledger technology, everyone gets easy access to data on the network.

Data management:
Handling the huge amount of data has been an ever-existing problem for many years. It is estimated that the amount of current data is 1.3 Zettabytes. To an extent, the sub-branch of AI- ‘Artificial General Intelligence’ has been successfully able to work as a ‘feedback control system.’ But due to its centralized nature, it too had its limits.

Fortunately, with the emergence of ledger technology, a fresh avenue of decentralized technology where the management of the data has become very effective. The security of the data, due to the decentralized nature, has also improved. Additionally, the decentralized nature of the blockchain technology acts as a strong wall against the pressing issues such as hacking and corruption.

The immutable blockchain technology hones more trustworthy AI structure:
AI and AN, as seen above, is heavily reliant on the amount of data they get exposed to. Due to issues such as intentional tampering, human error, technical faults, the results of the data analysis by AI can be manipulated.

In such a situation, blockchain technology’s transparent, verifiable, time-stamped, auditable, open-network, and open-access nature can prove to be a great boon to the data analysis sector.  AI (Artificial Intelligence) and AN (Artificial Intuition) can, therefore, act far more effectively with a trustworthy data source. The already-verified data offered by the blockchain technology can offer benefits such as:

Lowered troubleshooting session
Decreased tampered data
Irregularity in the supply chain
Lower the stress in data management
Given the data will be traceable and auditable, the management of the data will become far more effective, thus boosting the AI and AN industry to great lengths.

Better control over rights to any content:
Your ‘rights on your content’ is a very sensitive topic, and unfortunately, it is the very thing that is compromised the most. For instance, most of the social platforms these days make you give up (fully or partially) your right to your content, which you publish on their platforms. This can lead to issues such as plagiarism, cyber crimes, copyright issues, etc.

The blockchain technology in such as a case can be very beneficial. With its data-verifying nature, it can guarantee the correct authorship of the content, and in addition, it can offer additional support in:

True license
Permission access to the content
Paid-access to the content
Paid-usage of the content
Maintaining IP (Intellectual Property) rights
Royalty rights can be maintained
Privacy of the content can be better controlled
Conclusion:
The ways in which the blockchain technology can help the AI and AN sector are endless. In this article, we have tried to give you a birds-eye view of the possibilities. The fact that the blockchain technology can disrupt the AI and AN industry for good is very promising. Many blockchain firms that support the blockchain technology with AI & Artificial Intuition (AN) like fetch.ai, Velas, have already started to materialize the benefits. The future holds a lot of excitement and true growth with the amalgamation of AI, AN, and blockchain technology’s super-powers.


2
Smartphone Application / Realme soon in Bangladesh
« on: Yesterday at 03:15:04 PM »
Realme, one of the fastest growing smartphone brands, has announced it will enter the Bangladesh market soon, according to a press release.

The Chinese smartphone brand will focus on 5G and AIOT technology, actively explore 5G use cases especially gaming and imaging to let youngsters enjoy 5G all the time, it adds.

"With Realme Link App, Realme smartphones are in connections with TOP 4 Smart Hub—Smart Screen, Smart Watch, Smart Speaker and Smart Earphones, together remotely controlling various smart products to build uni smart AIoT ecosystem," reads the press release.

The smartphone brand that came into being in 2018 brings trendy tech-lifestyle for the younger generation with high-quality products and applies high-end technology products to each price segment.

Realme has won over 60 world-renowned awards in 2019.

It has also become the fastest-growing smartphone brand worldwide by entering the Top 7 in the global smartphone shipments ranking within two years.

With the fast-growing speed, trendy products with strong performance and its 5G & AIoT strategic product portfolio, the arrival of Realme will rewrite the new pattern of the Bangladesh mobile phone market.


3
Smartphone Application / iPhone supply hit by coronavirus
« on: Yesterday at 03:14:40 PM »
Apple is to miss its revenue forecast for the March quarter due to the coronavirus epidemic, the US tech giant said Monday, warning that iPhone supplies worldwide would also be impacted, underlining the economic cost of the health crisis.

The COVID-19 virus death toll now exceeds 1,800 in China, where it has infected more than 72,000 after emerging in the central province of Hubei in December.

The virus has sparked global economic jitters, travel bans and the cancellation of high-profile sporting and cultural events.

"We are experiencing a slower return to normal conditions than we had anticipated," Apple said in a statement.

"As a result, we do not expect to meet the revenue guidance we provided for the March quarter."

Apple had forecast revenue of $63 billion to $67 billion for the second quarter to March.

It said that worldwide iPhone supply would be "temporarily constrained" as its manufacturing partners in China were only slowly ramping up work after being closed due to the virus.

Consumer demand in the crucial Chinese market has also been dampened after all Apple stores were shut.

"Stores that are (now) open have been operating at reduced hours and with very low customer traffic," the company said.

"We are gradually reopening our retail stores and will continue to do so as steadily and safely as we can."

Under control?
International Monetary Fund chief Kristalina Georgieva has said there could be a cut of around 0.1-0.2 percentage points to global growth, but stressed there was much uncertainty about the virus's economic impact.

Outside of hardest-hit Hubei, which has been effectively locked down to try to contain the virus, the number of new cases has been slowing and China's national health authority has said the outbreak was under control.

However, World Health Organization chief Tedros Adhanom Ghebreyesus said that the trend "must be interpreted very cautiously."

The travel industry has been most directly affected by China's decision to quarantine dozens of cities and cancel all overseas tour groups.

Some countries have told nationals to avoid travel to China and banned arrivals from there.

Supply chains of global firms such as Apple supplier Foxconn and auto giant Toyota have been disrupted as key production facilities in China were temporarily closed, and some major airlines have halted services.

Sportswear giants Nike and Adidas shuttered hundreds of stores in the country earlier this month and warned of a negative impact on their earnings.

State media said China may postpone its annual parliamentary session, which has been held in March for the last 35 years.

4
In a first, US researchers have used artificial intelligence to identify a powerful new antibiotic capable of killing several drug-resistant bacteria.

Antibiotics have been a cornerstone of modern medicine since the discovery of penicillin, but their effectiveness has seriously diminished in recent years as overuse has led to bacteria becoming resistant.

The scientists at MIT and Harvard trained a machine learning algorithm to analyze chemical compounds capable of fighting infections using different mechanisms than those of existing drugs.

Their findings were published in the journal Cell on Thursday.

"Our approach revealed this amazing molecule which is arguably one of the more powerful antibiotics that has been discovered," said James Collins, a professor of medical engineering at MIT and one of the paper's senior authors.

The team trained the model on about 2,500 molecules, identifying a compound they called "halicin" -- after the fictional artificial intelligence system from "2001: A Space Odyssey" -- for real world testing on strains of bacteria taken from patients and grown in lab dishes.

It was able to kill many bacteria that are resistant to treatment, including Clostridium difficile, Acinetobacter baumannii, and Mycobacterium tuberculosis.

It also cured two mice with A. baumannii, which has infected many US soldiers in Iraq and Afghanistan.

The strain of the infection in the mice was resistant to all known antibiotics, but a halicin ointment completely cured the mice within 24 hours.

The idea of using predictive computer models for discovery of drugs is not new, but had never been successful until now.

"The machine learning model can explore... large chemical spaces that can be prohibitively expensive for traditional experimental approaches," said Regina Barzilay, a professor of computer science at MIT.

The development raises hope for the future of antibiotics, and comes at a critical time: It is predicted that without immediate action to discover and develop new drugs, deaths attributable to resistant infections will reach 10 million a year by 2050.

The researchers plan to study halicin further and work with a pharmaceutical company or nonprofit to develop it for use in humans.

5
ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে যাঁরা একেবারে নতুন তাঁরা ভালোভাবে প্রোগ্রামিং শিখতে পারেন সবার আগে। এতে আউটসোর্সিংয়ে আমাদের দেশে অনেক উচ্চতর পর্যায়ে কাজ আসবে। যে কাজই শিখতে চান না কেন, আগে ভালোভাবে আপনাকে শিখতে হবে। তারপর কাজ পাওয়ার চিন্তা করতে হবে।

তবে বর্তমানে ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক ডিজাইন, কনটেন্ট রাইটিং, ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভেলপমেন্ট, মুঠোফোন অ্যাপ তৈরি, লিড জেনারেশন, অ্যাডমিন সাপোর্ট, গ্রাহকসেবা, ইন্টারনেট রিসার্চ ও ডেটা অ্যানালাইসিস কাজগুলোর চাহিদা বেশি।

নতুনেরা চেষ্টা করুন আইওএস ডেভেলপমেন্ট, অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্ট, পাইথন নিয়ে এগোতে। এই কাজগুলোতে প্রতিযোগিতা তুলনামূলক কম এবং কাজের চাহিদা বেশি। সবচেয়ে বড় বিষয়, এই কাজগুলোতে আপনার আয়ের পরিমাণটা অনেকাংশে বেড়ে যাবে।

যাঁরা ইউটিউব থেকে এইচটিএমএল, সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট ও বুটস্ট্র্যাপ শিখেছেন তা আসলে কতটুকু ভালোভাবে শিখেছেন তা যাচাই করে তবে কাজে যুক্ত হওয়া উচিত। আপনি যতটুকু শিখেছেন তাতে পিএসডি থেকে এইচটিএমএলে কীভাবে রূপান্তর করতে হয়, তা ভালো করে জেনে নিতে হবে। এইচটিএমএল, সিএসএস, জাভাস্ক্রিপ্ট ও বুটস্ট্র্যাপে আপনি দক্ষ হলে চেষ্টা করুন পিএসডি থেকে এইচটিএমএল রূপান্তর কীভাবে করতে হয়, তা জানতে।

পিএসডি থেকে এইচটিএমএল বা এক্সএইচটিএমএল করার ক্ষেত্রে পরিকল্পনাটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বাকি কাজ, অর্থাৎ কোড লেখা সহজ। যাঁরা আউটসোর্সিংয়ে ওয়েব ডেভেলপমেন্টের কাজ করতে চান, তাঁরা শুরু করতে পারেন পিএসডি টু এইচটিএমএল রূপান্তরের কাজ দিয়ে। এই কাজগুলো ভালোভাবে শিখে যেকোনো মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট খুলে (অনুমোদন হলে) পিএসডি টু এইচটিএমএল কনভার্ট লিখে খুঁজলেই অনেক কাজের খোঁজ পাবেন। এখান থেকে আপনার দক্ষতা অনুযায়ী কাজে আপনি আবেদন করতে পারেন।

6
নতুনেরা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে জানলেও কীভাবে শুরু করবেন বা কীভাবে কী করবেন, তা নিয়ে দ্বিধায় থাকেন। ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে যেসব যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন, সেগুলোর অন্যতম হলো:

*ক্লায়েন্টের সঙ্গে যোগাযোগের দক্ষতা, বিশেষ করে ইংরেজিতে ভালো লিখতে পারতে হবে।
*ইন্টারনেট সম্পর্কে ভালো ধারণা।

*গুগল ও ইউটিউবের ব্যবহার এবং প্রয়োজনীয় তথ্য বের করে আনার দক্ষতা।

পরবর্তী প্রশ্ন, কীভাবে শিখবেন। খুব সহজ, আপাতত কোথাও যেতে হবে না। গুগল আর ইউটিউব হতে পারে তাৎক্ষণিক শিক্ষক মশাই। আপনার যে বিষয়টি ভালো লাগে, সে বিষয়ের ওপর ভিডিও দেখুন, গুগল করুন, জানুন। এরপরও যদি মনে কোনো প্রশ্ন থাকে, তাহলে আপনার পরিচিত বা আশপাশে যাঁরা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে অভিজ্ঞ, তাঁদের জিজ্ঞেস করুন। তবে মনে রাখা জরুরি, কাজ পাওয়ার আগে সে বিষয়ে ভালোভাবে শিখতে হবে। আপনি যদি কাজ না শিখেই কাজ পাওয়ার আশা করেন, তবে আপনার ধারণা ভুল।

ফ্রিল্যান্সিং কী? ফ্রিল্যান্সিং কত বছর বয়স থেকে শুরু করা যায়? কী ধরনের দক্ষতা দরকার?

সহজভাবে বললে, অনলাইন বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে মুক্ত পেশাজীবী হিসেবে কোনো কাজ করাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, চেম্বারে বসে চিকিৎসক যেভাবে নিজের ক্যারিয়ার পরিচালনা করেন, একজন আইনজীবী যেভাবে চুক্তিভিত্তিক কাজ করেন, সিনেমার অভিনয়শিল্পীরা যেভাবে নিজের সময় এবং পারিশ্রমিক নির্ধারণ করে কাজ হাতে নেন, একইভাবে কোনো পেশায় কেউ যখন নিজের মতো করে ক্যারিয়ার পরিচালনা করেন, সেটাই হলো ফ্রিল্যান্সিং। একজন মানুষের বোধশক্তি হওয়ার পর ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য আসলে বয়সের ধরাবাঁধা কোনো নিয়ম নেই। মনে রাখবেন এখানে আপনার দক্ষতাই সব। দক্ষতা থাকলে আপনার শিক্ষাজীবনের সনদ এখানে মূল্যায়িত হবে না।

অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনার বিশেষ কোনো কাজের দক্ষতা। সেটা হতে পারে কনটেন্ট রাইটিং, গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, স্মার্টফোনের অ্যাপ তৈরি কিংবা এমন অসংখ্য কাজের মধ্যে কোনোটা, যেটাতে আপনি নিজেকে ভালো মনে করেন। মনে রাখা ভালো, আপনি কোনো কাজে দক্ষ না হলে প্রথমে কোনোভাবে কাজ পেয়ে গেলেও বেশি দিন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে টিকে থাকতে পারবেন না। এখানে আপনার দক্ষতাই সব।

7
অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং খাতে ক্যারিয়ার গড়তে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট বিষয়টিকে বেছে নেন। কিন্তু যাঁরা এ ক্ষেত্রে আসার কথা ভাবছেন তাদের কিছু কিছু বিষয় জেনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ। ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার হিসেবে যদি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট নিয়ে বলতে হয়, তাহলে এখানে মূলত দুটি ভাগ:

১. ওয়েব ডিজাইন তথা এইচটিএমএল, সিএসএস এবং জাভাস্ক্রিপ্ট
২. ওয়েব ডেভেলপমেন্ট তথা ওয়েব প্রোগ্রামিং
মনে রাখা জরুরি, একজন ভালো ওয়েব প্রোগ্রামার হতে হলে আগে ভালো ওয়েব ডিজাইনার হতে হবে। ওয়েব ডেভেলপমেন্ট অর্থাৎ ওয়েব প্রোগ্রামিং শেখার প্রথম ধাপ হলো ওয়েব ডিজাইন। এ জন্য আপনাকে প্রথমেই শিখতে হবে এইচটিএমএল, সিএসএস এবং জাভাস্ক্রিপ্ট (বিশেষভাবে প্রয়োজন জেকোয়েরির মতো কোনো ফ্রেমওয়ার্ক)। তারপর মূলত ওয়েব প্রোগ্রামিং যেমন পিএইচপি, এএসপি ডটনেট, জাভা বা অন্য কোনো প্রোগ্রামিং ভাষা। তবে বলতে পারেন, পিএইচপির কাজ বর্তমানে সবচেয়ে বেশি।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের জন্য ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখতে অনেকেই প্রশিক্ষণকেন্দ্রের খোঁজ করেন। তবে শুরুতেই কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন নেই। নিজে আগে বেসিক বিষয়গুলো আয়ত্ত করতে হবে। এখন গুগল আর ইউটিউব হতে পারে আপনার সবচেয়ে ভালো শিক্ষক। যদি ইংরেজি ভালো বোঝেন, তবে লিনডা ডটকমের (lynda. com) ভিডিও টিউটরিয়ালগুলো দেখুন। এরপরও মনে কোনো প্রশ্ন থাকলে আপনার পরিচিত বা আশপাশে যাঁরা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে অভিজ্ঞ, তাঁদের জিজ্ঞেস করুন।

মনে রাখবেন, আপনি যেখানেই শিখতে যাবেন বা যেখান থেকেই শিখুন না কেন, দিন শেষে কিন্তু আপনাকে পরিশ্রম করতেই হবে, তা না হলে এখানে আপনার সবকিছুই বৃথা যাবে। ভাসা-ভাসা ধারণা বা এরূপ দক্ষতা নিয়ে আপওয়ার্ক বা যেকোনো মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্ট খুলে কাজ পাওয়ার চিন্তা করলে হতাশ হয়ে পড়বেন। মনে রাখবেন, অন্যদের থেকে নিজেকে আলাদা করতে হলে পরিশ্রমটাও অন্যদের চেয়ে বেশিই দিতে হবে জীবনে। ধৈর্য নিয়ে লেগে থাকলে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়।

8
অনেকেই পড়াশোনার পাশাপাশি নিজেকে একজন মুক্ত পেশাজীবী (ফ্রিল্যান্সার) হিসেবে গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেন। যাঁদের কম্পিউটার, স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ আছে, তাঁরা যথাযথ দক্ষ হয়ে ফ্রিল্যান্সিং ক্ষেত্রে কাজ করতে পারেন। সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। জেনে নিন সেগুলো সম্পর্কে:

১. ফ্রিল্যান্সিং একটু কম বয়সে শুরু করা ভালো, কারণ পড়াশোনার পাশাপাশি আপনি কাজ করতে পারবেন। তবে একাজে যথেষ্ট ধৈর্য থাকতে হবে।

২. প্রথমেই আপনাকে ইন্টারনেট সম্পর্কে খুব ভালো ধারণা তৈরি করতে হবে। এরপর আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে কোন বিষয়টি নিয়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিংয়ে ক্যারিয়ার গড়তে চান, যেমন সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও), গ্রাফিকস ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট প্রভৃতি। এরপর ওই নির্দিষ্ট বিভাগ সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা লাভ করুন।

৩. আপনি এসইও নিয়ে কাজ করলে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে পূর্ণ ধারণা লাভ করবেন, যা আপনাকে একটি স্থায়ী ক্যারিয়ার গড়তে সাহায্য করবে।

৪. প্রাথমিক ধারণা লাভের জন্য আপনি ইউটিউবে খোঁজ করুন, পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং কমিউনিটি যেমন আপওয়ার্ক বাংলাদেশ বা আরও ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মে যুক্ত থাকতে পারেন।

৫. পাশাপাশি আপনি ভালো একজন মেন্টর খুঁজে বের করতে পারেন।

৬. কাজ শেখার পর স্থানীয় কিছু কাজ করে আপনি পোর্টফোলিও তৈরি করুন।

৭. এরপর ভালো মার্কেটপ্লেস যেমন আপওয়ার্ক বা ফাইবারের মতো প্ল্যাটফর্মে নিজের প্রোফাইল তৈরি করুন।

৮. পাশাপাশি অনুরোধ থাকবে, আপনার পড়াশোনার ক্ষতি করবেন না। পড়াশোনার ফাঁকে সময় পেলে নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য বিভিন্ন বিষয় হাতেকলমে শিখতে পারেন।

9
অনেকেই অনলাইনের জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস ফাইবারে অ্যাকাউন্ট খোলেন কিন্তু কাজ পান না। তাঁরা জানতে চান, এ ক্ষেত্রে কী কী পদক্ষেপ নিলে কাজ পেতে পারেন। যাঁরা একেবারে নতুন, তাঁরা এ প্ল্যাটফর্মে কাজ করার জন্য অবশ্যই দক্ষ হয়ে তারপর আসবেন। আপনি কী ধরনের কাজ করেন, তার ওপর নির্ভর করে আপনার গিগ সাজাতে পারেন। মনে রাখবেন, একটা ভালো গিগ আপনার ভাগ্য ঘুরিয়ে দিতে পারে। সাধারণ সব ধরনের কাজের ক্ষেত্রে যে ব্যাপারগুলো নজর দিতে পারেন, সেগুলো জেনে নিন:

১. আপনার গিগের থাম্বনেইল ঠিক আছে কি না এবং সেটা যুগোপযোগী কি না, সেটা ভালোমতো যাচাই করুন।

২. সম্ভব হলে গিগ ভিডিও বানান। যাঁদের গিগে ভিডিও আছে, তাঁদের কাজ পাওয়ার হার তুলনামূলক ভালো। তবে খেয়াল রাখবেন, ভিডিও যেন আপনি যে ধরনের কাজ করছেন, সেটার ভালো একটা ধারণা দেয় এবং ভালো মানের হয়।

৩. গিগ টাইটেল ঠিক আছে কি না এবং ক্রেতাকে আকৃষ্ট করতে পারছে কি না, সেটা ভালোভাবে যাচাই করুন।

৪. যে সেবা দিচ্ছেন, সেটার প্রতিযোগিতা কেমন, সে অনুযায়ী আপনি আপনার সেবা সাজিয়েছেন কি না দেখুন। আপনার বিভাগে যাঁরা ভালো করছেন, তাঁদের থেকে আপনার গিগ সাজানোর পার্থক্য কী কী, সেটা বোঝার চেষ্টা করুন।

৫. ক্রেতাকে রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে চেষ্টা করুন। সে ক্ষেত্রে ইংরেজিতে লেখা এবং বানানের দিকে সতর্ক থাকুন এবং পেশাদারির পরিচয় দিন।

৬. ফাইভারের এডুকেশন সেন্টার এবং ফোরামে তাদের নিজস্ব কিছু নীতিমালা আছে। সেখান থেকে আপনার কাজের ধরন অনুযায়ী ঘেঁটে দেখে ধারণা নিন।

10
যেসব দেশের সীমানা নিয়ে রাজনৈতিক বিরোধ রয়েছে, সেসব অঞ্চলের সীমানা ব্যবহারকারীর অবস্থানভেদে ভিন্নভাবে প্রদর্শন করছে গুগল ম্যাপস। সম্প্রতি মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট-এর এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য দেওয়া হয়।

কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের দীর্ঘদিনের বিরোধ চলছে। এখন গুগল ম্যাপস ব্যবহারকারী যদি পাকিস্তান বা অন্যান্য দেশে অবস্থান করেন, তাহলে অঞ্চলটির সীমানা বিন্দু বিন্দু হিসেবে প্রদর্শন করবে। এর অর্থ, সীমানা নিয়ে বিরোধ চলছে। আবার ভারত থেকে এলাকাটি দেশটির অংশ হিসেবে কাশ্মীরের সীমান্ত সরলরেখায় স্পষ্টভাবে দেখা যায়।

অন্যদিকে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়াকে বিভক্তকারী জলসীমাটি জাপান সাগর হিসেবে সব দেশে প্রচার পেলেও দক্ষিণ কোরিয়ায় তা শুধু পূর্ব সাগর হিসেবে দেখায়।

আন্তর্জাতিক সীমানা নিয়ে রাজনৈতিক বিতর্কিত বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে জাতিসংঘের ভৌগোলিক নাম নিয়ে বিশেষজ্ঞ দলের (ইউএনজিইজিএন) সঙ্গে কাজ করে থাকে গুগল। কয়েকটি দেশের সীমানা নিয়ে স্থানীয় সরকারের মতভেদ রয়েছে বলে জানায় সংস্থাটি।

এ ছাড়া প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিতর্কিত সীমান্তগুলোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণে ‘ডিসপিউটেড রিজিওন টিম’ নামে নিজেদের একটি বিশেষ দলের সাহায্য নেয় গুগল।

গুগল ম্যাপসের জন্য পণ্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইথান রাসেল বলেন, ‘বিতর্কিত অঞ্চল ও সীমানার ব্যাপারে আমরা নিরপেক্ষ থাকি। বস্তুনিষ্ঠতার সঙ্গে বিতর্কিত অংশটি ধূসর ড্যাশরেখার মাধ্যমে দেখানো হয়। তবে গুগল ম্যাপসের স্থানীয় সংস্করণে এলাকার নাম ও সীমানা প্রদর্শনের সময় আমরা স্থানীয় আইন মেনে চলি।’সূত্র: সিনেট

11
Mobile Apps / যান ছাড়াই যানজট
« on: February 19, 2020, 01:24:52 PM »
গুগল ম্যাপস ব্যবহার করার বড় সুবিধা হলো জ্যাম এড়িয়ে চলা। কেউ বের হওয়ার আগে গন্তব্যে পৌঁছার পথে গুগল ম্যাপসে যদি লাল রং দেখানো হয়, তবে এর অর্থ দাঁড়ায় যানজট আছে। তখন ভিন্ন পথ অবলম্বন করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। গুগল মূলত ওই পথে কতজন ম্যাপস অ্যাপ ব্যবহার করছেন, তার ভিত্তিতে দেখিয়ে থাকে যানজট কম না বেশি।

ঠিক এই ধারণা কাজে লাগিয়ে গুগলের মানচিত্র সেবাকে বোকা বানিয়েছেন জার্মান শিল্পী সাইমন ওয়েকার্ট। তিনি ছোট এক ঠেলাগাড়িতে একসঙ্গে ৯৯টি স্মার্টফোন নিয়ে বার্লিনের বেশ কয়েকটি রাস্তায় ঘুরেছেন। প্রতিটি ফোনেই গুগল ম্যাপস সচল ছিল। ফলাফল হলো, ওয়েকার্ট যে যে রাস্তা দিয়ে হেঁটেছেন, সে সে রাস্তায় ওই সময়ে লাল রং দেখিয়েছে। অর্থাৎ, গুগল ম্যাপসে তখন ওই অংশে তীব্র যানজট দেখাচ্ছিল।

পুরো ব্যাপারটির ভিডিও ধারণ করে ইউটিউবে আপলোড করেন ওয়েকার্ট। বিজনেস ইনসাইডারকে ই-মেইলে জানিয়েছেন, গুগল ম্যাপসের কৌশল কাজে লাগিয়ে তিনি ইচ্ছাকৃতভাবেই কৃত্রিম যানজট তৈরি করেছিলেন।
গুগলের এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘একজন ব্যবহারকারী ঠিক কী ধরনের যানবাহন ব্যবহার করছেন, তা বুঝতে পারার প্রযুক্তি কয়েকটি দেশে রয়েছে। কিন্তু ঠেলাগাড়ি গুগলের জন্য নতুন একটি বিষয়। তবে গুগল ম্যাপসের এ ধরনের সৃজনশীল ব্যবহারকে আমরা প্রশংসার চোখেই দেখছি।’

12
একবার ভাবুন তো, মাত্র ১০ মিনিটেই যদি বৈদ্যুতিক গাড়ি আর ২ মিনিটেই স্মার্টফোন পুরোপুরি চার্জ হয়ে যায় এবং সারা দিন চলে কেমন হবে! এত দিন যা প্রায় অসম্ভব বলেই মনে করা হতো, তা দ্রুতই সম্ভব হবে বলে মনে করছেন গবেষকেরা।

সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা পরবর্তী প্রজন্মের উপযোগী শক্তি সংরক্ষণ (এনার্জি স্টোরেজ) প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন, যার মাধ্যমে দ্রুতগতিতে চার্জ দিয়ে তা দীর্ঘক্ষণ ব্যবহার করা যাবে। আইএএনএসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গবেষকেদের উদ্ভাবিত এ প্রযুক্তি প্রমাণের ধারণার পর্যায়ে থাকা অবস্থায় দারুণ সম্ভাবনাময় বলে মনে করা হচ্ছে। বৈদ্যুতিক যানবাহন, ফোন, পরিধানযোগ্য প্রযুক্তিসহ বেশ কয়েকটি ব্যবহারিক ক্ষেত্রে প্রয়োগের সম্ভাবনা রয়েছে।

গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ‘নেচার এনার্জি’ শীর্ষক সাময়িকীতে। এতে বলা হয়েছে, উচ্চশক্তির ও দ্রুতগতির সুপার ক্যাপাসিটরের যে সমস্যা থাকে, নতুন প্রযুক্তিতে তা সমাধান করা গেছে। এতে অল্প জায়গার ভেতর বেশি শক্তি ধরে রাখা সম্ভব ছিল না।

গবেষণা প্রবন্ধের লেখক ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের গবেষক ঝুয়াংনান লি বলেছেন, ‘আমাদের নতুন সুপার ক্যাপাসিটর পরবর্তী প্রজন্মের শক্তি সংরক্ষণ প্রযুক্তির হিসেবে বর্তমান ব্যাটারি প্রযুক্তির প্রতিস্থাপন বা এর পাশাপাশি ব্যবহার করা হতে পারে। এতে ব্যবহারকারী আরও শক্তি সঙ্গে রাখতে পারবেন।’

লি আরও বলেন, তাঁরা এমন উপকরণ নকশা করেছেন, যা তাঁদের সুপার ক্যাপাসিটরকে একটি উচ্চ শক্তি ঘনত্ব দেয়। এটি দ্রুত চার্জ হওয়া ও চার্জ ছেড়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে কার্যকর হবে। এ ছাড়া দীর্ঘ সময় চার্জ ধরে রাখতেও পারবে। সাধারণত, এখনকার ব্যাটারি এসব বৈশিষ্ট্যের কোনো একটি পাওয়া যায়। কিন্তু নতুন সুপার ক্যাপাসিটরে উভয় সুবিধাই পাওয়া যায় বলে এটি গুরুত্বপূর্ণ একটি উদ্ভাবন। এ ছাড়া পারফরম্যান্সের কোনো তারতম্য না করেই ওই সুপার ক্যাপাসিটর ১৮০ ডিগ্রি বাঁকানো যায়। এতে কোনো তরল ইলেকট্রোলাইট ব্যবহার করা হয়নি বলে বিস্ফোরণের ঝুঁকিও কম। তাই পরিধানযোগ্য প্রযুক্তিপণ্য ও ভাঁজ করা ডিভাইসে এটি ব্যবহার করা যাবে।

নতুন সুপার ক্যাপাসিটর তৈরিতে একদল রসায়নবিদ, প্রকৌশলী ও পদার্থবিদ একসঙ্গে কাজ করেছেন। এতে উদ্ভাবনী গ্রাফিন ইলেকট্রোড উপকরণ ব্যবহার করা হয়েছে।

নতুন উদ্ভাবন করা সুপার ক্যাপাসিটরের প্রশংসা করেছেন ইউসিএল ম্যাথামেটিক্যাল অ্যান্ড ফিজিক্যাল সায়েন্সেসের অধ্যাপক ইভান পারকিন। তিনি বলেন, বিশাল শক্তি সফলভাবে কমপ্যাক্ট সিস্টেমে সংরক্ষণ করার বিষয়টি নতুন স্টোরেজ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এতে ক্ষুদ্র ইলেকট্রনিকস ও বৈদ্যুতিক গাড়িতে কাজে লাগানো যাবে।

13
ত্রিমাত্রিক (থ্রিডি) অ্যানিমেশন বিষয়ে অনলাইনে প্রচুর কাজ আছে। জনপ্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, যেমন আপওয়ার্ক, ফাইভারে প্রতিদিন হাজার হাজার কাজ আসে অ্যানিমেশন নিয়ে। এ ছাড়া অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে নিজে অ্যানিমেশনের বিভিন্ন কম্পোনেন্ট বা উপাদান তৈরি করে বিক্রি করার সুযোগও আছে।

থ্রিডি অ্যানিমেশন শেখার ক্ষেত্রে কতটুকু শিখতে হবে, সে মাপকাঠিটা বলে দেওয়া একটু কষ্টের। অ্যানিমেশনের অনেক বিভাগ আছে, একেকজন একেক বিভাগে পারদর্শী হয়ে থাকে। কেউ হয়তো ক্যারেক্টার অ্যানিমেশন ভালো পারে, কেউ প্রোডাক্ট অ্যানিমেশন, আবার কেউ ধরুন ঘরবাড়ি।

 
থ্রিডি অ্যানিমেশনের কাজের চাহিদা এখন প্রচুর। ছবি: রয়টার্স
থ্রিডি অ্যানিমেশনের কাজের চাহিদা এখন প্রচুর। ছবি: রয়টার্স
ত্রিমাত্রিক (থ্রিডি) অ্যানিমেশন বিষয়ে অনলাইনে প্রচুর কাজ আছে। জনপ্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, যেমন আপওয়ার্ক, ফাইভারে প্রতিদিন হাজার হাজার কাজ আসে অ্যানিমেশন নিয়ে। এ ছাড়া অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে নিজে অ্যানিমেশনের বিভিন্ন কম্পোনেন্ট বা উপাদান তৈরি করে বিক্রি করার সুযোগও আছে।

থ্রিডি অ্যানিমেশন শেখার ক্ষেত্রে কতটুকু শিখতে হবে, সে মাপকাঠিটা বলে দেওয়া একটু কষ্টের। অ্যানিমেশনের অনেক বিভাগ আছে, একেকজন একেক বিভাগে পারদর্শী হয়ে থাকে। কেউ হয়তো ক্যারেক্টার অ্যানিমেশন ভালো পারে, কেউ প্রোডাক্ট অ্যানিমেশন, আবার কেউ ধরুন ঘরবাড়ি।


আগে আপনি ঠিক করুন, আপনি কোন বিভাগ নিয়ে কাজ করবেন। তারপর সেই বিভাগের কাজগুলো দেখুন। ভালো ভালো অ্যানিমেটরদের কাজ এবং নির্দিষ্ট মান অনুসরণ করুন। অ্যানিমেশন বিষয়ে অনলাইন গ্রুপ এবং কমিউনিটিতে যোগ দিন, তাঁদের কাজ দেখুন। অনুশীলন প্রকল্প নিয়ে কাজ করুন। জ্যেষ্ঠদের মতামত নিন। নির্দিষ্ট মান অর্থাৎ ইন্ডাস্ট্রি স্ট্যান্ডার্ডের কাছাকাছি যখন পৌঁছাতে পারবেন এবং নিজের অনুশীলনের কিছু কাজ দিয়ে পোর্টফোলিও হয়ে যাবে, তখন মার্কেটপ্লেসে ঘেঁটে দেখুন এবং ধীরে ধীরে অনলাইনে কাজ শুরু করার চেষ্টা করতে পারেন।

14
ইন্টারনেটে বর্তমানে ৩৫ কোটির মতো ডোমেইন রয়েছে, যার মধ্যে শীর্ষে ডটকম ও ডটনেট। নতুন চুক্তি অনুযায়ী, মার্কিন প্রতিষ্ঠান ভেরি সাইন চাইলে ডটকম ডোমেইনের দাম বাড়াতে এবং অন্যান্য ডোমেইন নিবন্ধনকারী প্রতিষ্ঠান সে বাড়তি দাম গ্রাহকের ওপর চাপাতে পারবে।

এখানে জেনে রাখা ভালো, ইন্টারনেট করপোরেশন আর অ্যাপ্লাইড নেমে অ্যান্ড নার্ভাস (আইমান) নামের অলাভজনক সংস্থা সব ধরনের ডোমেইন নাম নিয়ন্ত্রণ করে। আর ডটকম ডোমেইন নিবন্ধনের মূল দায়িত্বে আছে ভেরি সাইন।

প্রতিষ্ঠানটি আবার নিমজ্জিত বা গোড়ালির মতো প্রতিষ্ঠানের কাছে পাইকারি দরে ডোমেইন নিবন্ধনের স্বত্ব বিক্রি করে থাকে। যুক্তরাষ্ট্রের ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্তে এমনটা হচ্ছে।

15
মানুষের মস্তিষ্কে যেভাবে তথ্য সংরক্ষিত হয়, সেভাবেই মেমোরি যন্ত্রে তথ্য সংরক্ষণ করা যাবে। সম্প্রতি এমনই একটি যন্ত্র উদ্ভাবনে কাজ করেছে আন্তর্জাতিক গবেষকেদের একটি দল। জাপানের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ম্যাটেরিয়াল সায়েন্সের গবেষকেদের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক গবেষকেদের দলটি নিউরোমরফিক নেটওয়ার্ক ম্যাটেরিয়াল নিয়ে কাজ করছে। আইএএনএসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চিপ জায়ান্ট ইনটেলের তথ্য অনুযায়ী, নিউরো মরফিক কম্পিউটিং মানব মস্তিষ্কের নিউরাল স্ট্রাকচার এবং অপারেশন অনুকরণের সঙ্গে সম্পর্কিত।

গবেষকেরা বর্তমান কম্পিউটারগুলোতে ব্যবহৃত মূলধারার চেয়ে পৃথক নীতি ব্যবহার করে মেমরি ডিভাইসটি নকশার পরিকল্পনা করেছেন। তাঁরা আশা করছেন, তাঁদের এই গবেষণা মস্তিষ্কের তথ্য প্রক্রিয়াকরণ প্রক্রিয়া বোঝার ক্ষেত্রে সুবিধা হবে।

গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ‘সায়েন্টিফিক রিপোর্টস’ সাময়িকীতে। গবেষকেরা বলছেন, তাঁরা অসংখ্য ধাতব ন্যানোয়ারের সমন্বয়ে গঠিত নিউরোমরফিক নেটওয়ার্ক তৈরিতে সফল হয়েছেন। তাঁরা দাবি করেছেন, এ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে তাঁরা মানুষের মস্তিষ্কের মতোই বৈদ্যুতিক বৈশিষ্ট্য তৈরি করতে সক্ষম হন, যা মনে রাখা, শেখা, ভুলে যাওয়া, সতর্ক হয়ে ওঠা বা প্রশান্তি বজায় রাখার মতো বিষয়গুলো সম্পাদন করতে পারে।

গবেষকেরা বলছেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্স (এআই) পদ্ধতি দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে এবং আমাদের জীবনে নানা রকম প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে। যদিও এআইয়ের তথ্য প্রক্রিয়াকরণ মানুষের মস্তিষ্কের অনুরূপ বলে ধরা হয়, তার পরও মানুষের মস্তিষ্ক কীভাবে পরিচালিত হয়, তার অনেক কিছুই এখনো অজানা।

Pages: [1] 2 3 ... 7