Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Samsul Alam

Pages: [1] 2 3 4
1
Future Bangladesh 2050 / OGD in Bangladesh
« on: Yesterday at 11:56:17 PM »
Data are critical to change the world we live in. Data play a pivotal role to generate evidence as well as to take decision in both public and private sector. In the context of Bangladesh, open government data is critical to ensure effective public services. There are huge government and private sector data that can contribute in decision making for policy makers as well as for common citizen. Also, open data and open government data can support policy reform and ensure transparency and citizen participation. The release of data in open data formats has been established to be a driver in terms of better public service, economic growth, job creation, research and innovation, which itself has been identified as one of the primary drivers of development. In this regard, the initiative of developing open data portal has been taken and the open government portal was launched in 2016. In this portal, there are publicly available data sets from more than 35 Ministries and related agencies.

Pros-

Provide one-stop access to the government’s publicly-available data,
Communicate government data and analysis through visualizations,
Create value by catalyzing application development, and
Facilitate analysis and research.
Cons-
Security problem of government,
Private sector can create some negative issue against government,
For this political groups suddenly create some bed effect on private property,
Blaming each other of government and private sectors because of corruption.

- Collected

2
Innovation in Technology / BIG DATA & its' application
« on: Yesterday at 11:53:30 PM »
What does ‘Big Data’ mean?

Big data refers to a process that is used when traditional data mining and handling techniques cannot uncover the insights and meaning of the underlying data. Data that is unstructured or time sensitive or simply very large cannot be processed by relational database engines. This type of data requires a different processing approach called big data, which uses massive parallelism on readily available hardware.

In recent years, there has been a boom in Big Data because of the growth of social, mobile, cloud, and multi-media computing. We now have unprecedented amounts of data, and it is up to organizations to harness the data in order to extract useful, actionable insights. But, because traditional systems cannot store, process, and analyze massive amounts of unstructured data, organizations are turning to Big Data management solutions to turn unstructured data into the actionable data needed for gaining key insights into their business and customers.


Benefits of using “BIG DATA ANALYTICS’

1. Identifying the root causes of failures and issues in real time.
2. Fully understanding the potential of data-driven marketing.
3. Generating customer offers based on their buying habits.
4. Improving customer engagement and customer loyalty.
5. Reevaluating risk portfolios quickly.
6. Personalizing the customer experience.
7. Adding value to online and offline customer interactions.

BIG DATA CHALLENGES

1. Dealing with data growth.
2. Generating insights in a timely manner.
3. Recruiting & retaining big data talent.
4. Integrating disparate data sources.
5. Validating data.
6. Securing big data.
7. Organizational resistance.


The 10 Vs of Big Data

#1. Volume.
#2. Velocity.
#3. Variety.
#4. Vulnerability.
#5. Variability.
#6. Veracity.
#7. Validity.
#8. Volatility.
#9. Visualization.
#10. Value.


   BIG DATA APPLICATIONS

-Big Data Applications in Healthcare
-Big Data Applications in Manufacturing
-Big Data Applications in Media & Entertainment
-Big Data Applications in IoT (Internet of Things)
-Big Data Applications in Government

USES OF BIG DATA

I) Understanding & targeting customers.
II) Understanding & optimizing business process.
III) Performance optimization & performance evaluation.
IV) Improving healthcare & public health.
V) Improving sports performance.
VI) Improving science & research.
VII) Optimizing device & machine performance.
VIII) Improving security & law enforcement.
IX) Improving & optimizing cities & countries.
X) Financial trading.
Here is a list of top 10 big data tools that are used by successful analytics developer
•   Cassandra
•   Hadoop
•   Plotly
•   Bokeh
•   Neo4j
•   Cloudera
•   OpenRefine
•   Storm
•   Wolfram Alpha
•   Rapidminer

- Collected

3
Digital Bangladesh will provide us an ICT driven knowledge-based society where information will be readily available on line and where all possible tasks of the government, semi-government and also private spheres will be processed using the state of the art technology.

So, in order to build a digital Bangladesh, we should emphasis on efficient and effective use of modern ICT in all spheres of the society with a view to establish technology driven e-governance, e-commerce, e-production, e-agriculture, e-health etc. for emphasizing the overall development of the common people, the major stakeholders of the country.

Yes, I think that Bangladesh is going forward to achieve the concept. The slogan of “Digital Bangladesh” of the Government of Bangladesh has special significance for national development. Digital Bangladesh with Vision 2021 is a big impetus for the use of digital technology in the country. The nation now, with over 12 crore mobile subscribers and 4.3 crore Internet subscribers, enjoys the fruits of digitisation in numerous areas of activities. A few examples of available digital services are: registration for admission to academic institutions, publication of results of examinations, registration for jobs abroad, registration of pilgrimage, collection of official forms, online submission of tax returns, online tendering, etc. Online banking systems have sped up the financial activities of the country. District Information Cells, National Information Cell are also revolutionary additions.
There are many more developments in the line. Deputy Commissioner Offices in districts and UNO offices in upazilas provide a large number of e-services to rural clients. Direct digital services eliminate middlemen and save both time and money. Without such online services, our cities and towns would have turned into difficult places to live in. 

Implement the digital Bangladesh successfully I would suggest those thing.

•Develop the Academic sector.

•The Education should be technology based education.

•The teacher should be experienced and trained.

•Develop the IT sector.

.•Buildup trained man power.

•Build the vocational training instituate.

•Create more oppourtunity for the women

•Develop the software industry,

•Give the proper knowledge about IT.

It is said “hope springs eternal in the human breast” we also hope that we shall be able to turn our war-shattered country into a digital Bangladesh by bringing about an all round development through all-out efforts of peop.

- Collected

4
Innovation in Technology / Bitcoin feasibility in Bangladesh
« on: Yesterday at 11:43:17 PM »
At its simplest, Bitcoin is either virtual currency or reference to the technology. You can make transactions by check, wiring, or cash. You can also use Bitcoin (or BTC), where you refer the purchaser to your signature, which is a long line of security codeencrypted with 16 distinct symbols. The purchaser decodes the code with his smartphone to get your cryptocurrency. Put another way; cryptocurrency is an exchange of digital information that allows you to buy or sell goods and services.The transaction gains its security and trust by running on a peer-to-peer computer network that is similar to Skype, or BitTorrent, a file-sharing system

A blockchain is a digitized, decentralized, public ledger of all cryptocurrency transcations. Constantly growing as ‘completed’ blocks (the most recent transactions) are recorded and added to it in chronological order, it allows market participants to keep track of digital currency transactions without central recordkeeping. Each node (a computer connected to the network) gets a copy of the blockchain, which is downloaded automatically.

It is not feasible to implement bitcoin-like currency in Bangladesh.

Bangladesh Bank has banned the use of Bitcoin, a virtual cryptocurrency, in Bangladesh by issuing a circular on its website. The circular read that Bitcoin is not an authorised and legal currency in any other country in the world. “Transaction with this currency may cause a violation of the existing money laundering and terrorist financing regulations,” the circular further read. However, the notice does not carry any indication on how the regulation would be enforced. The circular also said Bitcoin is not authorised by any regulatory authority and thereby its use may cause financial loss of the citizens. “According to the information received from the internet and different news media, transactions have been taking place using different online-based exchange platforms including Bitcoin, Ethereum, Ripple and Litecoin.”

These virtual currencies are not authorised by any legal authority of any country and thereby no financial claims can be made against such currencies. Besides, these currencies do not conform to Foreign Exchange Regulation Act, 1947, Anti Terrorism Act 2009 and Money Laundering Prevention Act, 2012, the notice also read. So, the transaction of virtual currencies online with any unnamed or pseudo named peer may cause a violation of the above-mentioned acts and lead clients to face various financial and legal risks. Under the circumstances, the citizens have been asked to refrain from performing, assisting and advertising all kind of transactions through the virtual currencies like Bitcoin to avoid financial and legal damages. Meanwhile, a Facebook page titled “Bitcoin Exchange: Bitcoin Buy and Sell Bangladesh” has been opened in recent times. A local website named bitcoin.com claims that Bitcoin transaction can be performed in Bangladesh through Bkash, Rocket and other general banking accounts.

- Collected

5
Innovation in Technology / Bitcoin vs. Blockchain
« on: Yesterday at 11:41:36 PM »
Bitcoin is a cryptocurrency, created and held electronically on your PC or in a virtual wallet. No one controls it or sees it – it is decentralized so no person, institution or bank controls the currency. It was the year 2009 when bitcoin burst onto the financial scene, and soon computers all over the world started running sophisticated programs that would mine blocks of bitcoins by solving extremely complex mathematical equations.  bitcoin means to discover or verify new bitcoins because unlike traditional currency, bitcoin cannot be printed. Miners make money every time they discover new bitcoins or verify a bitcoin transaction.

There can only be a fixed 21 million bitcoins [to prevent inflation], out of which 15.5 million are currently in circulation, which leaves 5.5 million bitcoins to be discovered. These valued blocks of online information skyrocketed in price as time went on and investor appeal in the new technology grew.

Trading could be done online – anonymously, quickly, without hassle from regulatory and exchange bodies. The ease of use and lack of a trail led to flexibility unheard of in the financial world. But for all its benefits, the currency was overshadowed because of its anonymous, unregulated nature as it became easy for people to use the currency for  transactions that would stay off the books, as well as for schemes that  people.

While bitcoin had the power to make transactions untraceable, it was another innovation that promised to make every transaction transparent and permanent. Underlying the use of bitcoin is blockchain, which is almost entirely opposite its more famous alter-ego.  possesses the ability of having permanent records of the transactions the blocks (the name for their portions of value) are used for, and at any time people can see those  online in real time. It is this transparency that people have hopes in, but that’s not the only thing blockchain does differently than the cryptocurrency it drove for so long.

Blockchain can easily transfer everything from property rights to stocks and currencies without having to go through a middle man and clearing institution like SWIFT, while offering the same safety, higher speed and lower costs. Consider it from the financial perspective: billions of dollars are transferred daily in the financial markets, with every transaction being “cleared” by a middle man. Replacing the middle man with a revolutionary technology that is faster, cheaper and as secure will help save millions for businesses.

- Collected

6
A Bangladeshi physicist of Princeton University has led an international research team in discovering a novel quantum state of matter that can be 'tuned' at will - and it's 10 times more tunable than existing theories can explain.

M Zahid Hasan and his team's discovery of this level of manipulability of quantum matter opens up enormous possibilities for next-generation nanotechnologies and quantum computing.

Hasan, the Eugene Higgins Professor of Physics, shot to fame in 2014 when he led a team of scientists discovering 'Weyl fermion', an elusive massless particle theorised 85 years ago. In pursuit to an alternative theory of gravity, Albert Einstein's colleague at Princeton, physicist Hermann Weyl, first predicted the particle back in 1929.

“We found a new control knob for the quantum topological world , says Zahid Hasan

About the latest discovery, considered a potential gamechanger in quantum physics, Prof Zahid Hasan said, "We found a new control knob for the quantum topological world. We expect this is tip of the iceberg. There will be a new subfield of materials or physics grown out of this. ... This would be a fantastic playground for nanoscale engineering."

Hasan and his colleagues, whose research - "Giant and anisotropic spin-orbit tunability in a strongly correlated kagome magnet" - appears in the current issue of Nature, are calling their discovery a "novel" quantum state of matter because it is not explained by existing theories of material properties.

Princeton University's Office of Communications' writer Liz Fuller-Wright wrote elaborately about Zahid Hasan and his team's discovery.

Hasan's interest in operating beyond the edges of known physics attracted Jia-Xin Yin, a postdoctoral research associate and one of three co-first-authors on the paper, to his lab. Yin said, when he talked to Professor Hasan, "He (Hasan) told me something very interesting. He's searching for new phases of matter. The question is undefined. What we need to do is search for the question rather than the answer."

The classical phases of matter - solids, liquids and gases - arise from interactions between atoms or molecules. In a quantum phase of matter, the interactions take place between electrons, and are much more complex, wrote Liz Fuller-Wright.

"This could indeed be evidence of a new quantum phase of matter - and that's, for me, exciting," said David Hsieh, a professor of physics at the California Institute of Technology and a 2009 Ph.D. graduate of Princeton, who was not involved in this research. "They've given a few clues that something interesting may be going on, but a lot of follow-up work needs to be done, not to mention some theoretical backing to see what really is causing what they're seeing."

Hasan has been working in the groundbreaking subfield of topological materials, an area of condensed matter physics, where his team discovered topological quantum magnets a few years ago. In the current research, he and his colleagues "found a strange quantum effect on the new type of topological magnet that we can control at the quantum level," said Hasan, who was listed in the Thomson Reuters' World's Most Influential Scientific Minds-2014.

The key was looking not at individual particles but at the ways they interact with each other in the presence of a magnetic field. Some quantum particles, like humans, act differently alone than in a community, Hasan said. "You can study all the details of the fundamentals of the particles, but there's no way to predict the culture, or the art, or the society, that will emerge when you put them together and they start to interact strongly with each other," he said.

To study this quantum "culture," he and his colleagues arranged atoms on the surface of crystals in many different patterns and watched what happened. They used various materials prepared by collaborating groups in China, Taiwan and Princeton. One particular arrangement, a six-fold honeycomb shape called a "kagome lattice" for its resemblance to a Japanese basket-weaving pattern, led to something startling - but only when examined under a spectromicroscope in the presence of a strong magnetic field, equipment found in Hasan's Laboratory for Topological Quantum Matter and Advanced Spectroscopy, located in the basement of Princeton's Jadwin Hall.

All the known theories of physics predicted that the electrons would adhere to the six-fold underlying pattern, but instead, the electrons hovering above their atoms decided to march to their own drummer - in a straight line, with two-fold symmetry.

"The electrons decided to reorient themselves," Hasan said. "They ignored the lattice symmetry. They decided that to hop this way and that way, in one line, is easier than sideways. So this is the new frontier. ... Electrons can ignore the lattice and form their own society."

The researchers were shocked to discover this two-fold arrangement, said Songtian Sonia Zhang, a graduate student in Hasan's lab and another co-first-author on the paper. "We had expected to find something six-fold, as in other topological materials, but we found something completely unexpected," she said. "We kept investigating - Why is this happening? - and we found more unexpected things. It's interesting because the theorists didn't predict it at all. We just found something new."

"There are many things we can calculate based on the existing theory of quantum materials, but this paper (published in Nature) is exciting because it's showing an effect that was not known," he said. This has implications for nanotechnology research especially in developing sensors. At the scale of quantum technology, efforts to combine topology, magnetism and superconductivity have been stymied by the low effective g factors of the tiny materials.

"The fact that we found a material with such a large effective g factor, meaning that a modest magnetic field can bring a significant effect in the system - this is highly desirable," said Hasan. "This gigantic and tunable quantum effect opens up the possibilities for new types of quantum technologies and nanotechnologies."

The discovery was made using a two-story, multi-component instrument known as a scanning tunneling spectromicroscope, operating in conjunction with a rotatable vector magnetic field capability, in the sub-basement of Jadwin Hall. The spectromicroscope has a resolution less than half the size of an atom, allowing it to scan individual atoms and detect details of their electrons while measuring the electrons' energy and spin distribution.

M Zahid Hasan did his SSC from Dhanmondi Government Boys High School and HSC from Dhaka College with outstanding results. He studied at the University of Texas in Austin and got his PhD from Stanford University.

He joined Princeton as a lecturer. Now, he is a professor of Physics with a specific interest in the field of Quantum Condensed Matter Physics at the university.

His research work features in Physics Today, Nature News, Science News, New Scientist, Scientific American, and Physics Worlds.

- Collected from the Daily Star

7
Internet / Internet penetration slows in 4G era
« on: Yesterday at 11:20:37 PM »
The growth of internet in the first nine months of the year has been the lowest in three years despite the roll out of the faster 4G mobile data service in February.

Between the months of January and September, 1.07 crore active internet connections were added, down 15.08 percent from a year earlier, according to a report of the Bangladesh Telecommuni-cation Regulatory Commi-ssion published on Thursday. With the new additions, the total number of active internet connections at the end of September was 9.12 crore. Of them, 93.63 percent are using mobile internet and 6.29 percent fixed broadband. 

When the 3G service was launched in 2013, the telecom industry saw exponential growth, according to industry insiders. But the same shift was not seen when 4G service was introduced.

“Smartphones and internet-enabled handsets are a prerequisite for the growth of mobile internet users,” said Sayed Talat Kamal, head of external communications of Grameenphone, the country's leading mobile operator.

In 2018, Grameenphone, which has 3.63 crore internet subscribers, has seen a slower uptake of smartphones, which has impacted mobile internet usage growth, he added.

The government has revised upwards the duty structure for mobile handsets and increased the taxes on different segments, which impacted the internet adoption rate.

The quality of 60 percent of the handsets in Bangladesh is poor, said Shahed Alam, head of corporate and regulatory affairs at Robi.

As a result, the number of internet users might not increase, as they would not be able to get the best out of the fast data speed offered by 4G.

“In the last few months, we have seen that the import of smartphones, especially the 4G-enabled ones, has almost halted,” Alam told reporters at a workshop in Dhaka on Tuesday. The industry had asked the government to withdraw the tax on handsets for at least the next two years to help it to grow.

“This would have given a push to the government's digitalisation vision too,” he said, adding that the demands were not met.

The number of internet users would not escalate if the Internet of Things and artificial intelligence technologies are not adopted, said a top official of another operator.

“Once home appliances are connected to the internet, the number will become much higher,” said the senior executive, who has been working in this field for more than a decade. He also said the internet users' number was not directly linked to 4G.

4G offers the fastest mobile internet and that is related to using more data. Only 3G users have shifted to the 4G technology but it has not added new users, the official said.

- Muhammad Zahidul Islam

Collected from the Daily Star

8

বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষক নিয়োগ দিন
বিশ্বাস করা হচ্ছে এবং করানো হচ্ছে, বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ‘মানহানি’ হয়েছে; অর্থাৎ তাঁদের মানের অবনতি ঘটেছে। আমলা-কাজি-সিপাহসালার—রাষ্ট্রের আর কোনো পক্ষের মানহানি হয়নি, হয়েছে শুধু বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের। বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের মান নির্ধারণ এবং মানের অবনতি রোধ করার উদ্দেশ্যে সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে একটি খসড়া নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের কর্তাব্যক্তিরা এই নীতিমালার ব্যাপারে তাঁদের মতামত ব্যক্ত করেছেন। সিদ্ধান্ত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের তিনটি নিয়ামক থাকবে: ১. প্রাথমিক-উচ্চমাধ্যমিক-স্নাতক স্তরের চূড়ান্ত পরীক্ষার ফলাফল; ২. নিয়োগ-পরীক্ষা পাস এবং ৩. পাঠদানের ক্ষমতা।

শিক্ষার তৃতীয় স্তর কিংবা উচ্চশিক্ষার সঙ্গে প্রথম দুই স্তর, অর্থাৎ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক (উচ্চমাধ্যমিকও যার অন্তর্ভুক্ত) শিক্ষার মূল পার্থক্য হচ্ছে, উচ্চশিক্ষা যাঁরা দেবেন এবং নেবেন, তাঁদের যথাক্রমে গবেষণা করতে হবে এবং গবেষণা করা শিখতে হবে। ঐতিহাসিকভাবে ‘বিশ্ববিদ্যালয়’ নামের প্রতিষ্ঠানটির ওপর গবেষণা করা ও গবেষণা শেখানোর দায়িত্ব বর্তায়। গবেষণা যদি আপনি না করেন, তবে অতিসাম্প্রতিক কালে জ্ঞানের জগতে কী পরিবর্তন হলো, সেটা আপনি জানতে পারবেন না, শিক্ষার্থীদের জানাতে পারবেন না এবং এর ফলে সমাজেও জ্ঞানের অগ্রগতির সর্বশেষ সংবাদ অজানা থেকে যাবে। সুতরাং বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকের তিনটি কাজ: ১. নিজে গবেষণা করা; ২. অন্যকে গবেষণায় সহায়তা করা এবং ৩. পাঠদান করা।

প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষকদের শুধু পাঠদান করলেই চলে। একজন কলেজশিক্ষকের সঙ্গে একজন বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকের পার্থক্যটা এখানেই। আমি প্রথম দুই স্তরের শিক্ষকদের কোনোভাবেই ছোট করছি না। আমি শুধু বলতে চাই যে একজন বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকের দায়িত্ব শুধু পাঠদানে সীমাবদ্ধ থাকা উচিত নয়।

একটি বিশ্ববিদ্যালয় কী ধরনের প্রতিষ্ঠান হওয়া উচিত—সে সম্পর্কে বাংলাদেশের নীতিনির্ধারক কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের স্পষ্ট ধারণা আছে বলে মনে হয় না। এর কারণ, এখন যাঁরা নীতিনির্ধারক কিংবা প্রবীণ বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষক, তাঁদের শিক্ষকেরাও খুব বেশি গবেষণামুখী ছিলেন না এবং এর ফলে শিক্ষার্থীদেরও তাঁরা গবেষণামুখী করে তুলতে ব্যর্থ হয়েছেন। আমাদের আগের প্রজন্মের বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের সিংহভাগ আচরণে-মানসিকতায় নেহাতই একেকজন কলেজশিক্ষক ছিলেন এবং তাঁদের শিক্ষার্থীরাও ছাত্রজীবনে কলেজশিক্ষার্থী এবং কর্মজীবনে কলেজশিক্ষকে পরিণত হয়েছেন।

শিক্ষকতা, কারিকুলাম, পাঠ্যক্রম, পাঠদান থেকে শুরু করে আমাদের প্রজন্মের বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের যাবতীয় আচরণ ও কর্মকালে কলেজশিক্ষকের মানসিকতা প্রতিফলিত হয়। মাস্টার্স পর্যায়েও তাঁরা সেমিনারের কথা ভাবতে পারেন না, কোর্স দিতে চান। পরীক্ষা ছাড়াও যে অর্জিত জ্ঞান যাচাইয়ের অন্য পন্থা থাকতে পারে—হাজার চেষ্টা করেও এ ব্যাপারটা বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের বোঝাতে পারবেন না। এর পেছনে অর্থনৈতিক কারণও আছে বৈকি। পরীক্ষা মানেই ইনভিজিলেশন, খাতা দেখা, নম্বর তোলা ইত্যাদি হাজার রকম আয়ের সুবর্ণ সুযোগ নাদান শিক্ষকেরা কেন হেলায় নষ্ট করতে যাবেন? বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখনো ছাত্রদের নাম ডেকে উপস্থিতির হিসাব নেওয়া হয়, অনেকটা জেলখানার কয়েদিদের মতো। একেকটি ক্লাসে শ খানেক ছাত্রের নাম ডাকতেই তো কুড়ি মিনিট চলে যাওয়ার কথা। ক্লাসের সময়সীমা যদি পঞ্চাশ মিনিট হয়, তবে শিক্ষক মহোদয় পড়াবেন কখন?

কোনো ব্যক্তির গবেষণা করার ক্ষমতা তাঁর মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক ও স্নাতক পর্যায়ে অর্জিত ভালো ফলের ওপর নির্ভর করে না। ভালো ছাত্রমাত্রই ভালো গবেষক নন। কে ভালো গবেষক হবেন আর কে হবেন না, সেটা শুধু সময়ই বলতে পারে। নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে ভালো আমলা নির্বাচন করা যেতে পারে, কিন্তু ভালো গবেষক তথা ভালো বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষক নির্বাচন করা কার্যত অসম্ভব।

পাশ্চাত্যে বিশ্ববিদ্যালয়–শিক্ষকদের কোনো নিয়োগ পরীক্ষায় পাস করতে হয় না। প্রাথমিক থেকে শুরু করে স্নাতক পর্যায়ের পরীক্ষায় কার, কী ফলাফল ছিল, সেটাও বিবেচনায় নেওয়া হয় না। এসব ফলাফল কলেজ কিংবা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের সময় বিবেচ্য হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে একমাত্র বিবেচ্য, মুখ্যত গবেষণার ক্ষমতা এবং গৌণত পাঠদানের ক্ষমতা। দীর্ঘদিন ধরে এই দুই ক্ষমতা প্রমাণ করার পর পাশ্চাত্যে একজন ব্যক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হতে পারেন।

পাশ্চাত্যে পিএইচডি করতে করতেই একজন ছাত্র নিজ বিষয়ের বিখ্যাত সব জার্নালে তাঁর গবেষণাকর্ম প্রকাশ করার চেষ্টা করেন। একই সঙ্গে তিনি স্নাতক পর্যায়ে খণ্ডকালীন ভিত্তিতে পড়াতেও শুরু করেন। পাঠ দিতে দিতে তিনি পড়াতে শেখেন এবং জেনে যান, পড়ানোর কাজটা আদৌ তিনি পারবেন কি না। শিক্ষার্থীরাও শিক্ষানবিশ শিক্ষককে মূল্যায়ন করেন এবং শিক্ষানবিশ যখন কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক পদের জন্য আবেদন করেন, তখন শিক্ষার্থীদের এই মূল্যায়ন বিবেচনায় নেওয়া হয়। পিএইচডি অভিসন্দর্ভ কিংবা প্রকাশিত গবেষণাকর্মের মান এবং পাঠদানের ক্ষমতা—এই দুটি বিষয়ের ওপর নির্ভর করে বিজ্ঞ নির্বাচকেরা সিদ্ধান্ত নেন, কোনো বিশেষ ব্যক্তিকে শিক্ষক হিসেবে অস্থায়ী নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে কি না। কয়েক বছর অস্থায়ী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত থাকার পর বিশ্ববিদ্যালয়ে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের নিয়োগ স্থায়ী হয়। নিয়োগ স্থায়ী হওয়া এবং পদোন্নতি পাওয়া নির্ভর করে প্রধানত শিক্ষকের কয়টি প্রবন্ধ স্বীকৃত জার্নালে প্রকাশিত হলো, তার ওপর।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ, মঞ্জুরি কমিশনের কর্তাব্যক্তিদের বক্তব্য এবং সাম্প্রতিক খসড়া নীতিমালা থেকে পরিষ্কার বোঝা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ ও কলেজেশিক্ষক নিয়োগের মধ্যে পার্থক্য করতে আমরা সক্ষম নই। নিয়োগ পরীক্ষা ও প্রথম দুই স্তরের ফলাফলের ওপর নির্ভর করে বিশ্ববিদ্যালয়ে যেসব শিক্ষক নিয়োগপ্রাপ্ত হবেন, তাঁদের যোগ্যতা কলেজ বা স্কুলশিক্ষকের চেয়ে বেশি হবে না। কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগের ধরন যদি একই হয়, তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কলেজ-মানের শিক্ষক নিয়োগ হবে এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রকারান্তরে কলেজে পরিণত হবে।

কার্যত বাংলাদেশে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই—প্রাইভেট-পাবলিকনির্বিশেষে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রকৃতপক্ষে এক একটি বড়সড় কলেজমাত্র। পরিতাপের বিষয় এই যে ভবিষ্যতেও যে বাংলাদেশে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে উঠবে, তারও কোনো আলামত দেখা যাচ্ছে না ওই নীতিমালায়। বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে যাঁরা ভাবেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঠামোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত যাঁরা নেন, তাঁরা হয়তো জানেনই না ‘বিশ্ববিদ্যালয়’ কাকে বলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস: আদিপর্ব শীর্ষক পুস্তকটি পড়ে তাঁরা নিঃসন্দেহে উপকৃত হতে পারেন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন অন্ততপক্ষে শিক্ষকদের মধ্যে এই বই বিতরণের ব্যবস্থা নিলে শিক্ষা তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা সম্পর্কে সমাজের অজ্ঞানতা অনেকটাই দূর হবে বলে আমি মনে করি।

শিশির ভট্টাচার্য্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক ভাষা ইনস্টিটিউটের পরিচালক

Collected from Prothom Alo

9
প্রথমবারের মতো দেশে তৈরি ৬ জিবি র‍্যামের ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন বাজারে আনছে ওয়ালটন। ‘প্রিমো এক্সফাইভ’ মডেলের ফোনটি তৈরি হয়েছে গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ কারখানায়। ওয়ালটনের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নিজস্ব নকশা ও প্রযুক্তিতে তৈরি ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগযুক্ত ফোনটি বাজারে আসছে শিগগিরই। এখন আগাম ফরমাশ নেওয়া হচ্ছে। আগাম ফরমাশে গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীদের জন্য ফ্রি ডেটাসহ ওয়ালটনের পক্ষ থেকে থাকবে বিশেষ উপহার।

প্রিমিয়াম মেটাল ফ্রেম ডিজাইনের ‘প্রিমো এক্সফাইভ’ ফ্ল্যাগশিপ ফোনে ব্যবহৃত হয়েছে ৫.৯৯ ইঞ্চির ইন-সেল আইপিএস প্রযুক্তির ফুলভিউ ডিসপ্লে। পর্দার রেজল্যুশন ২১৬০ বাই ১০৮০ পিক্সেল। অ্যান্ড্রয়েড ৮.১ ওরিও অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত এই ফোনের উচ্চগতি নিশ্চিত করতে আছে ৬৪ বিটের ২ গিগাহার্টজ অক্টাকোর প্রসেসর। গ্রাফিকস হিসেবে রয়েছে মালি-জি ৭১। এর সঙ্গে ৬ জিবি এলপিডিডিআর৪ এক্স র‍্যাম থাকায় পাওয়া যাবে দারুণ পারফরমেন্স। এর ইন্টারনাল স্টোরেজ ৬৪ জিবি, যা মাইক্রো এসডি কার্ডের মাধ্যমে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

নতুন এই ফোনের পেছনে রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশযুক্ত এফ ২.০ অ্যাপারচারসমৃদ্ধ ডুয়েল বিএসআই ক্যামেরা, যার একটিতে আছে ১৩ মেগাপিক্সেল লেন্স, অন্যটিতে ৫ মেগাপিক্সেল লেন্স। সেলফির জন্য এই ফোনের সামনে রয়েছে সফট এলইডি ফ্ল্যাশযুক্ত এফ ২.০ অ্যাপারচার সাইজের ১৬ মেগাপিক্সেল বিএসআই ক্যামেরা।

পাওয়ার ব্যাকআপ দিতে এতে আছে ৩ হাজার ৪৫০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি। দুটি ন্যানো সিম ব্যবহারের সুবিধাসম্পন্ন ফোনটি থ্রিজি, ফোরজি ও সিডিএমএ নেটওয়ার্ক সমর্থন করে। মেমোরি কার্ডের জন্য রয়েছে আলাদা স্লট। ফোনের তথ্য সুরক্ষায় রয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা। এর ফেস আনলক ফিচার ০.৩ সেকেন্ডে ব্যবহারকারীর মুখাবয়ব রিড করতে পারবে। রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, প্যাটার্ন লক ও পাসওয়ার্ডও।

কানেকটিভিটি ফিচার হিসেবে রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভার্সন ৪, ইউএসবি টাইপ-সি, ওটিজি, ওটিএ এবং ডব্লিউ ল্যান হটস্পট। ব্লু রঙের ফোনটিতে ফুল এইচডি ভিডিও প্লেব্যাক করা যাবে। রয়েছে রেকর্ডিংসহ এফএম রেডিও।

গতকাল বুধবার রাজধানীর বসুন্ধরায় ওয়ালটনের করপোরেট অফিসে ‘প্রিমো এক্সফাইভ’ হ্যান্ডসেটের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। স্মার্টফোনটি উন্মোচন করেন গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ইয়াসির আজমান, হেড অব ডিভাইস সরদার শওকত আলী, ওয়ালটন গ্রুপের পরিচালক এস এম আশরাফুল আলম, এস এম মাহবুবুল আলম এবং তাহমিনা আফরোজ তান্না, ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম মঞ্জুরুল আলম এবং ওয়ালটন মোবাইল ফোন বিভাগের প্রধান এস এম রেজওয়ান আলম।

স্মার্টফোনটির দাম রাখা ২৪ হাজার ৯৯৯ টাকা। দেশের সব ওয়ালটন প্লাজা ও ব্র্যান্ড আউটলেট এবং গ্রামীণফোনের অনলাইন শপ, ওয়াও বক্স এবং মাই জিপি থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকায় ফোনটির আগাম ফরমাশ দেওয়া যাবে। আগাম ফরমাশ দেওয়া ক্রেতারা স্মার্টফোনের সঙ্গে তিন হাজার টাকার গিফট ভাউচার পাবেন, যা দিয়ে ওয়ালটন বিক্রয়কেন্দ্র থেকে পছন্দের পণ্য কিনতে পারবেন। নগদ, ইএমআই ও কিস্তিতে ফোন কেনার ক্ষেত্রেও এই অফার প্রযোজ্য হবে।

গ্রামীণফোন ব্যবহারকারীরা প্রিমো এক্সফাইভ স্মার্টফোনে তাঁদের সিমকার্ড ইনসার্ট করার সঙ্গে সঙ্গে ৬ জিবি ইন্টারনেট ফ্রি পাবেন। এ ছাড়া ফোন কেনার পর থেকে পরবর্তী তিন মাসে ৩০ বার পর্যন্ত মাত্র ৯৯ টাকায় ৪ জিবি করে ইন্টারনেট ডেটা নিতে পারবেন।

এই ফোনে ৩০ দিনের দ্রুত পরিবর্তন করে দেওয়া ছাড়াও যাঁরা আগাম ফরমাশ দেবেন, তাঁদের জন্য দেড় বছরের বিশেষ ওয়ারেন্টি রয়েছে। এ সময়ের মধ্যে ফোনটিতে কোনো সমস্যা হলে গ্রাহকের কাছ থেকে ওয়ালটনের প্রতিনিধি গিয়ে ফোনটি নিয়ে আসবেন এবং ত্রুটিমুক্ত করে বিনা মূল্যে পৌঁছে দেবেন।

- দৈনিক প্রথম আলো থেকে সংগৃহিত

10
Facebook / ফেসবুকে আসছে নতুন টুল
« on: December 10, 2018, 02:52:38 AM »
 
 
ফেসবুকে আসছে নতুন টুল

ফেসবুক নতুন একটি ফিচার নিয়ে কাজ শুরু করেছে, যার মাধ্যমে নির্দিষ্ট বাক্য বা শব্দকে টাইমলাইনে দেখানো বন্ধ করা যাবে। অনলাইনে হয়রানি বা পীড়ন ঠেকাতে ফেসবুক এ উদ্যোগ নিয়েছে। ফেসবুক ডেভেলপারদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ব্যবহারকারীরা শিগগিরই তাঁদের টাইমলাইনে বাজে শব্দ ব্যবহার করে মন্তব্য করা ঠেকাতে পারবেন। এতে ওই শব্দ, বাক্যাংশ বা ইমোজি টাইমলাইনে পোস্ট করা যাবে না।

ডেভেলপাররা জেন ওং টুইটারে এক পোস্টে বলেছেন, ফেসবুকের নতুন ফিচার ব্যবহার করে নির্দিষ্ট শব্দ বা শব্দগুচ্ছ, ইমোজি নির্বাচন করে দেওয়া যাবে। ফিচারটি এখনো তৈরির কাজ করছেন ডেভেলপাররা।

প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট নাইনটুফাইভ ম্যাকের এক খবরে বলা হয়, যখন কোনো ব্যবহারকারী তাঁর টাইমলাইনে কোনো শব্দ বাতিল করবেন, তখন তিনি আর তা দেখবেন না। কিন্তু পোস্টকারী বা তার বন্ধুরা এটা দেখতে পাবেন। একে মন্তব্য ফিল্টার করার টুল বলা হচ্ছে। ইনস্টাগ্রামে এ ধরনের টুল রয়েছে। টুইটারেও মিউটেড ওয়ার্ড নামে এ ধরনের ফিচার রয়েছে। ফিচারটি কবে নাগাদ চালু হবে, তা এখনো জানায়নি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

- দৈনিক প্রথম আলো থেকে সংগৃহীত

11
তরুণেরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বুঁদ হয়ে থাকে। এদের পাশাপাশি সব শ্রেণি–পেশার মানুষেরও অবস্থা একই। সামাজিক যোগযোগের মাধ্যমের তরুণেরা দিন দিন ফেসবুক থেকে নিজেদের সরিয়ে নিচ্ছে। তারা এখন বুঁদ ইউটিউবসহ অপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোয়। ১৩ থেকে ১৭ বছরের কিশোরদের মধ্যে ফেসবুক এখন আর সবচেয়ে জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম নয়। তালিকার প্রথম তিনটির মধ্যেও নেই জাকারবার্গের ফেসবুক। সম্প্রতি এক গবেষণায় মিলেছে এমন তথ্য।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিউ রিসার্চ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণা চালিয়ে এমন তথ্য পেয়েছে। তাদের জরিপে দেখা গেছে, ফেসবুক থেকে সরে যাচ্ছে তরুণেরা। ফেসবুক ছেড়ে তারা ইউটিউবসহ অন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোর দিকে ঝুঁকছে। সামাজিক যোগাযোগের জন্য ১৩ থেকে ১৭ বছরের কিশোরদের মধ্যে ফেসবুক এখন আর সবচেয়ে জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম নয়। তালিকার প্রথম তিনটির মধ্যেও ফেসবুক এখন আর নেই। কেন তরুণেরা ঝুঁকছে, তাও জানা গেছে জরিপে।

পিউ রিসার্চ সেন্টারের জরিপের বরাত দিয়ে দ্য ভার্জ ডটকমের এক প্রতিবেদনে বলছে, কিশোর-তরুণেরা এখন ইউটিউবের দিকে ঝুঁকে পড়ছে। এদের ৮৫ শতাংশই বলছে, তারা ইউটিউব ব্যবহারে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। এরপরই আছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবি ও ভিডিও প্রকাশের শীর্ষ জনপ্রিয় দুটি অ্যাপ ইনস্টাগ্রাম ও স্ন্যাপচ্যাট। ইনস্টাগ্রাম ও স্ন্যাপচ্যাটের মধ্য লড়াইটাও বেশ। ইনস্টাগ্রাম পছন্দ করে ৭২ শতাংশ আর স্ন্যাপচ্যাট ৬৯ শতাংশ। পছন্দের জায়গায় টুইটার ৩২ শতাংশ ও রেডিট ৭ শতাংশ।

যুক্তরাষ্ট্রের তরুণদের মধ্যে ফেসবুকের অবস্থান এখন চতুর্থ। ৫১ শতাংশ তরুণ-তরুণী এখনো ফেসবুক ব্যবহার করছে। কিন্তু ২০১৫ সাল থেকে বর্তমান সময়ে এসে ফেসবুক ২০ শতাংশ ব্যবহারকারী হারিয়েছে।

পিউ রিসার্চ সেন্টার দেখেছে, তরুণেরা সাম্প্রতিক দিনগুলোয় ঝুঁকছে ইউটিউবের দিকে। ২০১৫ সালের জরিপেও ইউটিউবের এত জয়জয়কার ছিল না। ওই বছরে ৭১ শতাংশ কিশোর-তরুণ ছিল ফেসবুক ব্যবহারকারী। আর বর্তমান সময়ে এ সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে ৫১-তে। তবে জরিপে দেখা গেছে, এখনো বেশি আয়ের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম আয়ে পরিবারের সন্তানদের কাছে ফেসবুকের আবেদন বেশি।

এখন তরুণেরা স্মার্টফোন সহজে হাতের কাছে পেয়ে যাচ্ছে। পিউ রিসার্চ সেন্টারের মতে, শতকরা ৯৫ শতাংশ তরুণের স্মার্টফোন আছে। ২০১৫ সালে এ সংখ্যা ছিল ১০০ জনের মধ্যে ৭৩ জন। তরুণেরা বলছে, তারা নিজেদের মতো ও কাজের কথা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে জানাতে পারে বলেই এদিকে ঝুঁকছে। নিজেদের সমস্যাও তারা নিজেদের মতো করে এখানে তুলে ধরতের পারে বলেই ঝুঁকছে।

অ্যাপেও পিছিয়ে ফেসবুক
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইউটিউব ও হোয়াটসঅ্যাপের মতো অ্যাপগুলোকে পেছনে ফেলেছে চীনের এক অ্যাপ। ভিডিও সেলফি ব্যবহারের অ্যাপ ‌‘টিক টোক’ এখন সবার শীর্ষে। প্রযুক্তি নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্সর টাওয়ার জানিয়েছে, ২০১৮ সালের প্রথম তিন মাসে আইফোনে সবচেয়ে বেশিবার ডাউনলোড হয়েছে চীনের অ্যাপটি। মার্চ পর্যন্ত বিশ্বে ৪ কোটি ৪৮ লাখবার নামানো হয়েছে অ্যাপটি।

তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে ইউটিউব। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক আর পেছনে। ফেসবুক ডাউনলোড হয়েছে ২৯ দশমিক ৪ মিলিয়নবার। এ কারণে ফেসবুকের অবস্থান ৭-এ।

‘টিক টোক’ অ্যাপটি তৈরি করেছে বাইটড্যান্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এর প্রতিষ্ঠাতা ৩৪ বছরের উদ্যোক্তা যাহাং ইয়েমিং। ‌‘টিক টোক’ অ্যাপটির মূল ধারণা প্রকাশ করা হয় ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে। খুব সহজে ব্যবহারকারীরা ১৫ সেকেন্ডের ছোট ছোট সংগীতসংবলিত ভিডিও তৈরি করতে পারবেন, যেখানে বেশ কিছু ইফেক্ট যোগ করা যাবে। ধারণাটি নতুন কিছু নয়, কিন্তু ‘টিক টোক’ সেটার সঠিক ব্যবহারই করেছে। চীনে মোট ব্যবহৃত স্মার্টফোনগুলোর অন্তত ১৪ শতাংশ ফোনে অ্যাপটি ব্যবহৃত হচ্ছে।

তবে ‌‘টিক টোক’ আইফোনে যতটা ভালোভাবে কাজ করে, অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলোয় ততটা ভালো কাজ পাওয়া যায় না। এর কারণ হতে পারে যে মেইনল্যান্ড চীনে গুগলের ডিস্ট্রিবিউশন প্ল্যাটফর্মগুলো কাজ করে না, কারণ চীনে গুগলের সেবাগুলো নিষিদ্ধ।

- দৈনিক প্রথম আলো থেকে সংগৃহীত

12
 
 


ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম থেকে খবর পড়ার হার কমে ধীরে ধীরে হোয়াটসঅ্যাপের মতো মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশনগুলোয় বেড়ে যাচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার দ্য রয়টার্স ইনস্টিটিউটের করা এ-সংক্রান্ত গবেষণা তথ্য প্রকাশিত হয়। তাতে বলা হয়, অনলাইনে ভুয়া খবর ছড়ানো নিয়ে সারা বিশ্বের মানুষের মধ্যে অনেক বেশি উদ্বেগ দেখা যাচ্ছে।

রয়টার্স ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে বলা হয়, পাঁচটি মহাদেশের ৩৭টি দেশের মানুষের মধ্যে গবেষণা চালানো হয়। তাতে দেখা যায়, যুক্তরাষ্ট্রে গত বছরের তুলনায় এ বছর খবরের জন্য সামাজিক যোগাযোগের ব্যবহার ৬ শতাংশ কমে গেছে।

গবেষণা নিবন্ধের প্রধান লেখক নিক নিউম্যান বলেছেন, ফেসবুকে খবর খুঁজে পাওয়া, পোস্ট করা ও শেয়ার করার হার কমে যাওয়ায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে মানুষের খবর গ্রহণের হার কমে গেছে।

এ ছাড়া চলতি বছরের শুরুতেই ফেসবুকের কাছ থেকে বিশাল ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত হওয়ার ঘটনার পর বড় ধরনের সমস্যায় পড়েছে ফেসবুক। ওই কেলেঙ্কারির কারণে বিশ্বজুড়ে অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী এ সাইট থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। এখন অনেকেই হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামের মতো সাইটে বেশি সময় দিচ্ছেন। অবশ্য এ অ্যাপগুলোর মালিকানাও ফেসবুকের হাতে।

রয়টার্স ইনস্টিটিউটের ‘দ্য ২০১৮ ডিজিটাল নিউজ রিপোর্ট’ অনুযায়ী, তারা যে নমুনা নিয়ে গবেষণা করেছিল, তার মধ্যে মালয়েশিয়ায় প্রায় অর্ধেকের বেশি মানুষ (৫৪%) খবরের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করছেন। এরপর রয়েছে ব্রাজিল (৪৮%), স্পেন (৩৬%) ও তুরস্ক (৩০%)।

গবেষণার জন্য ৭৪ হাজার অনলাইন পাঠককে নিয়ে একটি সমীক্ষা চালায় জরিপকারী প্রতিষ্ঠান ইউগভ। এ সমীক্ষার তথ্য নিয়ে গবেষণা করেছে রয়টার্স ইনস্টিটিউট। এতে দেখা গেছে, এশিয়া ও দক্ষিণ আমেরিকায় ইনস্টাগ্রাম জনপ্রিয় হচ্ছে আর ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে জনপ্রিয় হচ্ছে স্ন্যাপচ্যাট। তবে খবরে বিশ্বাসযোগ্যতার ক্ষেত্রে এ বছর গড় প্রায় স্থিতিশীল রয়েছে। গত বছরে খবরে বিশ্বাসযোগ্যতার গড় ছিল ৪৩ শতাংশ, যা এ বছর ৪৪ শতাংশ হয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, ইন্টারনেটে সঠিক, নাকি ভুয়া খবর, সে ক্ষেত্রে ৫৪ শতাংশের বেশি মানুষ সচেতন থাকেন। এর মধ্যে ব্রাজিলের ৮৫ শতাংশ মানুষ সচেতন আর সবচেয়ে কম সচেতন (৩০%) নেদারল্যান্ডসের মানুষ।

সমীক্ষায় অধিকাংশ মানুষ মত দিয়েছেন, খবর প্রকাশক ও প্ল্যাটফর্মকে ভুয়া ও অবিশ্বাসযোগ্য খবর প্রকাশ ঠিক করার ক্ষেত্রে দায়দায়িত্ব নিতে হবে। ইউরোপে ৬০ শতাংশ, এশিয়ায় ৬৩ শতাংশ আর যুক্তরাষ্ট্রে ৪১ শতাংশ মানুষ মনে করেন, ভুয়া খবর ঠেকানোর ক্ষেত্রে সরকারের আরও অনেক কিছু করার আছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, খবর পাওয়ার ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হচ্ছে পডকাস্ট। যুক্তরাষ্ট্রে ৩৩ শতাংশ ও যুক্তরাজ্যে ১৮ শতাংশ মানুষ পডকাস্ট ব্যবহারের কথা জানান।

- প্রথম আলো থেকে সংগৃহীত

13
 
 

সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ব্যবহার সীমিত রাখার পরামর্শ

সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট দীর্ঘ সময় ব্যবহারে নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। কখনো শারীরিক বা কখনো মানসিক সমস্যা তৈরি হয় এ থেকে। কিন্তু ফেসবুক বা কোনো সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট কতক্ষণ ব্যবহার করা যুক্তিসংগত?

এত দিন নির্দিষ্ট করে কোনো সময়সীমার কথা বলেননি বিশেষজ্ঞরা। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণার ফল বলছে, দৈনিক আধা ঘণ্টার মতো সময় সামাজিক যোগাযোগের সাইট ব্যবহারের জন্য সীমাবদ্ধ করে রাখা ভালো। এতে একাকিত্ব ও বিষণ্নতা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। গত সপ্তাহে জার্নাল অব সোশ্যাল অ্যান্ড ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিতে গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট সিনেট।

যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪৩ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে ওই গবেষণা করা হয়। তাঁদের দুটি দলে ভাগ করা হয়। একটি দল সামাজিক যোগাযোগের তিন ওয়েবসাইট ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও স্ন্যাপচ্যাটে প্রতিদিন ১০ মিনিট করে কাটায়। তিন সপ্তাহের ওই পরীক্ষায় আরেকটি দল ইচ্ছামতো সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ব্যবহার করে।

গবেষণায় দেখা যায়, যাঁরা সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট কম সময় ধরে ব্যবহার করেন, তাঁরা কম একাকিত্বে ভোগেন। তাঁদের বিষণ্নতা বোধ কম হয়। এ ছাড়া কোনো কিছু নজর এড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বা উদ্বেগ কমে। এ ধরনের স্বনজরদারির বিষয় থেকে সুবিধা আসতে পারে বলে গবেষণায় দেখা গেছে।

পিউ রিসার্চের গবেষণা তথ্য অনুযায়ী, সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট এখন মানুষের জীবনের অংশ হয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের ৬৮ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করেন। এর মধ্যে এক–তৃতীয়াংশ মানুষ প্রতিদিন ফেসবুকে ঢোকেন। যুক্তরাষ্ট্রে ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সী তরুণ ও যুবকের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ব্যবহারের হার বেশি। তাঁদের মধ্যে ৭৮ শতাংশ স্ন্যাপচ্যাট, ৭১ শতাংশ ইনস্টাগ্রাম ও ৪৫ শতাংশ টুইটার ব্যবহার করেন।

গত মে মাসে ক্লেইনার পারকিনস যে তথ্য জানিয়েছিল, তা চমকে ওঠার মতো। তাদের তথ্য অনুযায়ী, মানুষ এখন ডিজিটাল মিডিয়াতে সময় কাটাচ্ছেন বেশি। গত বছর প্রাপ্তবয়স্করা দিনে গড়ে ৫ দশমিক ৯ ঘণ্টা ফোন, ডেস্কটপ ও ল্যাপটপ ব্যবহার করেন, ২০০৮ সালে যা ২ দশমিক ৭ ঘণ্টা মাত্র। প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ডিলোইটির তথ্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ এখন আগের চেয়ে বেশি মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন। এখন দিনে গড়ে ৫২ বার ফোন চেক করছেন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকেরা, যা গত বছর ছিল ৪৭ বার।

প্রযুক্তির অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে এর প্রভাব নিয়ে এখন উদ্বেগ বাড়ছে। প্রযুক্তিতে আসক্তির বিষয়টি সেন্টার ফর হিউম্যান টেকনোলজির মতো প্রতিষ্ঠানের নজরে এসেছে। এ বছরের শুরুতে শিশুদের ওপর প্রযুক্তির প্রভাব সম্পর্কে ট্রুথ অ্যাবাউট টেক নামে একটি প্রচার কর্মসূচি শুরু করে সংস্থাটি। এর আগে শিশুদের নিয়ে কাজ করা অলাভজন সংস্থা ক্যাম্পেইন ফর আ কমার্শিয়াল-ফ্রি চাইল্ডহুডের পক্ষ থেকে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গকে চিঠি দেওয়া হয়। তাতে মেসেঞ্জার ফর কিডস বন্ধ করার আহ্বান জানানো হয়। তাদের দাবি, শিশুরা সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ব্যবহারে প্রস্তুত নয়।

কয়েকটি গবেষণায় ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে আসক্তির কারণে বিষণ্নতার উপসর্গের যোগসূত্র পাওয়া যায় বলে পেনসিলভানিয়ার গবেষকেরা দাবি করেন। তাঁরা বলেন, ফেসবুকে আসক্তিতে একাকিত্ব বাড়ে এবং কর্মস্পৃহা কমে। অতিরিক্ত ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারে নিজের শরীর সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা তৈরি হয়।

- দৈনিক প্রথম আলো থেকে সংগৃহিত

14
Internet / Pioneers Under 35 2018
« on: December 10, 2018, 02:36:24 AM »
Their innovations are leading the way to better gene editing, smarter AI, and a safer internet.

    Joy Buolamwini

    When AI misclassified her face, she started a movement for accountability.

    Alessandro Chiesa

    A cryptocurrency that’s as private as cash.

    Chelsea Finn

    Her robots act like toddlers—watching adults, copying them in order to learn.

    Alexandre Rebert

    He asked, what if a computer could fix itself?

    Nabiha Saklayen

    She developed a way to edit genes with cheap lasers.

    Julian Schrittwieser

    AlphaGo beat the world’s best Go player. He helped engineer the program that whipped AlphaGo.

    John Schulman

    Training AI to be smarter and better, one game of Sonic the Hedgehog at a time.

    Humsa Venkatesh

    She discovered a secret to cancer growth that could lead to a new class of drugs.
Collected from MIT Technology Review

15
Department of Entrepreneurship / Innovators Under 35 2018
« on: December 10, 2018, 02:26:49 AM »
Entrepreneurs

Their innovations are creating new businesses and upending the old ways of doing things.

    Natalya Bailey

    A system to propel tiny satellites using electrical energy.

    Jonas Cleveland

    Helping create the shopping robots of the near future.

    Elizabeth Nyeko

    Her energy solution for rural communities in Africa could make grids more efficient everywhere.

    Yin Qi

    His face-recognition platform transformed the way business is done in China.

    Ashutosh Saxena

    When his smart speakers didn’t work as well as hoped, he built a better system.

    William Woodford

    Finding the materials for the next generation of grid-scale batteries.

    Ji Xu

    He helped build a payment system that lets anyone with an internet connection use financial services.

    Alice Zhang

    Using machine learning to identify new treatments for Parkinson’s and Alzheimer’s.

Collected from MIT Technology Review

Pages: [1] 2 3 4