Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - effatara

Pages: [1] 2 3
1
 Watermelons are mostly water — about 92 percent — but this refreshing fruit is soaked with nutrients. Each juicy bite has significant levels of vitamins A, B6 and C, lots of lycopene, antioxidants and amino acids. There's even a modest amount of potassium. Plus, this quintessential summer snack is fat-free, very low in sodium and has only 40 calories per cup.

"Foods that are high in antioxidants and amino acids allow your body to function optimally," said Angela Lemond, a Plano, Texas-based registered dietitian nutritionist and spokesperson for the Academy of Nutrition and Dietetics. "Antioxidants help prevent damage, and cancer. Amino acids are the basic building block for protein, and protein is used in virtually every vital function in the body."

Scientists have taken notice of watermelon's high lycopene levels — about 15 to 20 milligrams per 2-cup serving, according to the National Watermelon Promotion Board — some of the highest levels of any type of fresh produce. Lycopene is a phytonutrient, which is a naturally occurring compound in fruits and vegetables that reacts with the human body to trigger healthy reactions. It is also the red pigment that gives watermelons, tomatoes, red grapefruits and guavas their color.

Lycopene has been linked with heart health, bone health and prostate cancer prevention. It's also a powerful antioxidant thought to have anti-inflammatory properties, according to Victoria Jarzabkowski, a nutritionist with the Fitness Institute of Texas at The University of Texas at Austin.

To really maximize your lycopene intake, let your watermelon fully ripen. The redder your watermelon gets, the higher the concentration of lycopene becomes. Beta-carotene and phenolic antioxidant content also increase as the watermelon ripens. "Beta carotene is an antioxidant found in red-orange fruits and vegetables. It helps with immunity, skin, eye and the prevention of cancer," said Lemond.

A 2011 study in the Journal of Food Composition and Analysis that investigated five types of watermelon at four stages of ripening found that unripe watermelon with primarily white flesh has nearly zero beta-carotene. By the time it is fully red, the fruit has become an excellent source of the phytonutrient. 
 That doesn't mean the red parts are the only good ones. "All parts of the watermelon are good. There are a lot of nutrients throughout," said Jarzabkowski. This includes the white flesh nearest the rind, which contains more of the amino acid citrulline than the flesh, according to a 2005 study in the Journal of Chromatography.

Citrulline is a valuable amino acid that converts to the amino acid arginine. These amino acids promote blood flow, leading to cardiovascular health, improved circulation, and according to research at Texas A&M University, erectile dysfunction improvement (you'd probably have to eat a lot of the fruit to get a Viagra-like effect, though).

Recent studies have found that watermelon seeds are also wonderfully nutritious, especially if they are sprouted and shelled. They are high in protein, magnesium, vitamin B and good fats, according to an analysis by the International Journal of Nutrition and Food Sciences. 

Here are the nutrition facts for the watermelon, according to the U.S. Food and Drug Administration, which regulates food labeling through the National Labeling and Education Act:
Nutrition facts

Serving size: 2 cups diced (10 oz / 280 g)
Calories: 80 (Calories from Fat 0)

Amount per serving (and %DV*)
*Percent Daily Values (%DV) are based on a 2,000 calorie diet.

Total Fat: 0g (0%)

Total Carbohydrate: 21g (7%)
Dietary Fiber: 1g (4%)
Sugars: 20g

Cholesterol: 0mg (0%)
Sodium: 0mg (0%)
Potassium: 270mg (8%)
Protein: 1g

Vitamin A: (30%)
Vitamin C: (25%)
Calcium: (2%)
Iron: (4%)
Health benefits

Heart health

Watermelon's high levels of lycopene are very effective at protecting cells from damage and may help lower the risk of heart disease, according to a study at Purdue University. A study published in the American Journal of Hypertension found that watermelon extracts helped reduce hypertension and lower blood pressure in obese adults.

Watermelon may be especially important for older women. A study published in Menopause found that postmenopausal women, a group known to have increased aortic stiffness, who took watermelon extract for six weeks saw decreased blood pressure and arterial stiffness compared to those who did not take watermelon extract. The authors of the study attributed the benefits to citrulline and arginine.

Arginine can help improve blood flow and may help reduce the accumulation of excess fat.

Anti-inflammatory properties

"The lycopene in watermelon makes it an anti-inflammatory fruit," Jarzabkowski said. Lycopene is an inhibitor for various inflammatory processes and also works as an antioxidant to neutralize free radicals. Additionally, the watermelon contains choline, which helps keep chronic inflammation down, according to a 2006 article published in Shock medical journal.

Reducing inflammation isn't just good for people suffering from arthritis. "When you're sick, you have cellular damage, which can be caused by a variety of factors including stress, smoking, pollution, disease, and your body becomes inflamed," Jarzabkowski said. "It's called 'systemic inflammation.'" In this way, anti-inflammatory foods can help with overall immunity and general health.

Hydration

"Watermelons help with overall hydration, and that is a great thing," said Lemond. "They say we can get 20-30 percent of our fluid needs through our diet alone, and foods like these certainly help." Additionally, their juice is full of good electrolytes. This can even help prevent heat stroke.

Digestion

The watermelon contains fiber, which encourages a healthy digestive tract and helps keep you regular.

Skin and hair benefits

Vitamin A is stellar for your skin, and just a cup of watermelon contains nearly one-quarter of your recommended daily intake of it. Vitamin A helps keep skin and hair moisturized, and it also encourages healthy growth of new collagen and elastin cells, according to the Cleveland Clinic. Vitamin C is also beneficial in this regard, as it promotes healthy collagen growth.

Muscle soreness & athletic performance

Watermelon-loving athletes are in luck: drinking watermelon juice before an intense workout helps reduce next-day muscle soreness and heart rate, according to a 2013 study published in the Journal of Agricultural and Food Chemistry. This can be attributed to watermelon's amino acids citrulline and arginine, which help improve circulation.

A 2015 study published in the Journal of Applied Physiology suggests that watermelon's citrulline may also help improve athletic performance. Study participants who took citrulline supplements saw a boosted performance with more power production in high-intensity exercise like cycling and sprinting.

Cancer prevention

Like other fruits and vegetables, watermelons may be helpful in reducing the risk of cancer through their antioxidant properties. Lycopene in particular has been linked to reducing prostate cancer cell proliferation, according to the National Cancer Institute.

Health risks

If eaten in reasonable amounts, watermelons should produce no serious side effects. If you eat an abundance of the fruit daily, however, you may experience problems from having too much lycopene or potassium.

The consumption of more than 30 mg of lycopene daily could potentially cause nausea, diarrhea, indigestion and bloating, according to the American Cancer Society.

People with serious hyperkalemia, or too much potassium in their blood, should probably not consume more than about one cup of watermelon a day, which has less than 140 mg of potassium. According to the National Institutes of Health, hyperkalemia can result in irregular heartbeats and other cardiovascular problems, as well as reduced muscle control.

Loading up on water-dense foods like watermelon can be tempting for those looking to lose weight because they help you feel full, but Lemond cautions against going to extremes. "Eating more fruits and vegetables of any kind naturally helps decrease overall calories (energy) of the diet," she said. "We know that people that eat higher quantities of fruits and vegetables typically have healthier body weights However, I do not recommend eating only watermelon … You will lose weight, but that weight will be mostly muscle."

https://www.livescience.com/46019-watermelon-nutrition.html

2
It’s important to drink water according to your lifestyle rather than follow the 8-glass water rule, say nutritionists.
Water is your body’s principal chemical component and a natural detoxifier but not many are aware about how much water should we ideally drink everyday. Moreover, the popular 8 by 8 rule which says that one should drink eight glasses, each consisting of eight ounce of water, may not suit every individual. Says nutritionist Venu Adhiya Hirani, “While the general belief is to drink eight to 10 glasses of water, it is advisable to drink 12 to 15 glasses of fluids which includes water, tea, buttermilk, soup, etc. This would amount to an intake of around 2.5 litres of fluids everyday.”

Drink according to lifestyle
According to nutritionist expert Nupur Krishnan, one’s lifestyle plays an important role in deciding the amount of water that one should consume. “If you have a sedentary lifestyle and work in an air-conditioned environment where there is no scope for water loss via sweat, drinking more than 2 to 2.5 litres of water is not advisable. It will end up accumulating in your kidney and cause edema,” says Krishnan. For moderate workers like salespersons, who are required to do physical activity, it is important to drink around three litres of water.

Water consumption during summers

Also, it is necessary to change water consumption habits with the change in seasons. For instance, it is important to keep oneself hydrated during summers. “If you do not suffer from diabetes or blood pressure, you can have electrolyte or glucose water or drink nimbu paani. It is not only refreshing but also increases your energy levels,” says Krishnan. Moreover, it is important to drink maximum amount in the morning. Hirani says, “After waking up, it is important to drink around two to four glasses of water within the early part of the day. You could also add some amount of lemon, honey and cinnamon in it.”


Your water guide

- Drink around two to four glasses of water (roughly amounting to 800 ml) after waking up

- If you work in an airconditioned environment and follow a sedentary lifestyle, do not drink more than 2 to 2.5 litres of water per day

- For moderate workers, for instance salespersons, it is important to drink around three litres of water

- During summers, keep yourself hydrated by drinking water at regular intervals. If you don't suffer from diabetes or blood pressure, having electrolyte or glucose water is also advisable

https://timesofindia.indiatimes.com/life-style/health-fitness/diet/How-much-water-should-you-drink-every-day/articleshow/20408856.cms

3
Nutrition and Food Engineering / Common High Blood Pressure Myths
« on: March 27, 2019, 02:07:46 AM »
Myth: High blood pressure runs in my family. There is nothing I can do to prevent it.

High blood pressure can run in families. If your parents or close blood relatives have had high blood pressure, you are more likely to develop it, too. However, lifestyle choices have allowed many people with a family history of high blood pressure to avoid it themselves.
Myth: I don’t use table salt, so I’m in control of my sodium intake and my blood pressure.

In some people, sodium can increase blood pressure. But controlling sodium means more than just putting down the salt shaker. It also means checking labels, because up to 75 percent of the sodium we consume is hidden in processed foods like tomato sauce, soups, condiments, canned foods and prepared mixes. When buying prepared and prepackaged foods, read the labels. Watch for the words “soda” and “sodium” and the symbol “Na” on labels. These words show that sodium compounds are present.
Myth: I use kosher or sea salt when I cook instead of regular table salt. They are low-sodium alternatives.

Chemically, kosher salt and sea salt are the same as table salt — 40 percent sodium— and count the same toward total sodium consumption. Table salt is a combination of the two minerals sodium (Na) and chloride (Cl).
Myth: I feel fine. I don’t have to worry about high blood pressure.

About 103 million U.S. adults have high blood pressure — and many of them don’t know it or don’t experience typical symptoms. High blood pressure is also a major risk factor for stroke. If uncontrolled, high blood pressure can lead to serious and severe health problems.
Myth: People with high blood pressure have nervousness, sweating, difficulty sleeping and their face becomes flushed. I don’t have those symptoms so I’m good.

Many people have high blood pressure for years without knowing it. It’s often called “the silent killer” because it usually has no symptoms. You may not be aware that it’s damaging your arteries, heart and other organs. Know your numbers and don’t make the mistake of assuming any specific symptoms will let you know there’s a problem.
Myth: I read that wine is good for the heart, which means I can drink as much as I want.

If you drink alcohol, including red wine, do so in moderation. Heavy and regular use of alcohol can increase blood pressure dramatically. It can also cause heart failure, lead to stroke and produce irregular heartbeats. Too much alcohol can contribute to high triglycerides, cancer, obesity, alcoholism, suicide and accidents. If you drink, limit consumption to no more than two drinks per day for men and one drink per day for women. Generally, one drink equals a 12-ounce beer, a four-ounce glass of wine, 1.5 ounces of 80-proof liquor, or one ounce of hard liquor (100 proof).
Myth: I have high blood pressure and my doctor checks it for me. This means I don’t need to check it at home.

Because blood pressure can fluctuate, home monitoring and recording of blood pressure readings can provide your healthcare provider with valuable information to determine whether you really have high blood pressure and, if you do, whether your treatment plan is working. It’s important to take the readings at the same time each day, such as morning and evening, or as your healthcare professional recommends.
Myth: I was diagnosed with high blood pressure, but I have been maintaining lower readings, so I can stop taking my medication.

High blood pressure can be a lifelong disease. Follow your healthcare professional’s recommendations carefully, even if it means taking medication every day for the rest of your life. By partnering with your healthcare team, you can successfully reach your treatment goals and enjoy the benefits of better health.

https://www.heart.org/en/health-topics/high-blood-pressure/the-facts-about-high-blood-pressure/common-high-blood-pressure-myths

4
Yes, having street food daily effects our health. it depends on our digestive system too.. it may not affect in early age as our digestive system is strong and can easily digestive anything. It causes damage to our digestive system in our later age. It contain preservative, food colors, unhygienic food product and water, low quality products,etc. So not having street food daily is HIGHLY RECOMMENDED!!!!!

5
Nutrition and Food Engineering / Global Warming
« on: March 27, 2019, 01:56:27 AM »
Q: What is global warming?

A: Here's a simple definition of global warming. (And yes, it's really happening.) Over the past 50 years, the average global temperature has increased at the fastest rate in recorded history. And experts see the trend is accelerating: All but one of the 16 hottest years in NASA’s 134-year record have occurred since 2000.

Climate change deniers have argued that there has been a “pause” or a “slowdown” in rising global temperatures, but several recent studies, including a 2015 paper published in the journal Science, have disproved this claim. And scientists say that unless we curb global-warming emissions, average U.S. temperatures could increase by up to 10 degrees Fahrenheit over the next century.
Q: What causes global warming?

A: Global warming occurs when carbon dioxide (CO2) and other air pollutants and greenhouse gases collect in the atmosphere and absorb sunlight and solar radiation that have bounced off the earth’s surface. Normally, this radiation would escape into space—but these pollutants, which can last for years to centuries in the atmosphere, trap the heat and cause the planet to get hotter. That's what's known as the greenhouse effect.

In the United States, the burning of fossil fuels to make electricity is the largest source of heat-trapping pollution, producing about two billion tons of CO2 every year. Coal-burning power plants are by far the biggest polluters. The country’s second-largest source of carbon pollution is the transportation sector, which generates about 1.7 billion tons of CO2 emissions a year.

Curbing dangerous climate change requires very deep cuts in emissions, as well as the use of alternatives to fossil fuels worldwide. The good news is that we’ve started a turnaround: CO2 emissions in the United States actually decreased from 2005 to 2014, thanks in part to new, energy-efficient technology and the use of cleaner fuels. And scientists continue to develop new ways to modernize power plants, generate cleaner electricity, and burn less gasoline while we drive. The challenge is to be sure these solutions are put to use and widely adopted.
Q: How is global warming linked to extreme weather?

A: Scientists agree that the earth’s rising temperatures are fueling longer and hotter heat waves, more frequent droughts, heavier rainfall, and more powerful hurricanes. In 2015, for example, scientists said that an ongoing drought in California—the state’s worst water shortage in 1,200 years—had been intensified by 15 percent to 20 percent by global warming. They also said the odds of similar droughts happening in the future had roughly doubled over the past century. And in 2016, the National Academies of Science, Engineering, and Medicine announced that it’s now possible to confidently attribute certain weather events, like some heat waves, directly to climate change.

The earth’s ocean temperatures are getting warmer, too—which means that tropical storms can pick up more energy. So global warming could turn, say, a category 3 storm into a more dangerous category 4 storm. In fact, scientists have found that the frequency of North Atlantic hurricanes has increased since the early 1980s, as well as the number of storms that reach categories 4 and 5. In 2005, Hurricane Katrina—the costliest hurricane in U.S. history—struck New Orleans; the second-costliest, Hurricane Sandy, hit the East Coast in 2012.

The impacts of global warming are being felt across the globe. Extreme heat waves have caused tens of thousands of deaths around the world in recent years. And in an alarming sign of events to come, Antarctica has been losing about 134 billion metric tons of ice per year since 2002. This rate could speed up if we keep burning fossil fuels at our current pace, some experts say, causing sea levels to rise several meters over the next 50 to 150 years.
Q: What are the other effects of global warming?

A: Each year, scientists learn more about the consequences of global warming, and many agree that environmental, economic, and health consequences are likely to occur if current trends continue. Here’s just a smattering of what we can look forward to:

    Melting glaciers, early snowmelt, and severe droughts will cause more dramatic water shortages and increase the risk of wildfires in the American West.
    Rising sea levels will lead to coastal flooding on the Eastern Seaboard, especially in Florida, and in other areas such as the Gulf of Mexico.
    Forests, farms, and cities will face troublesome new pests, heat waves, heavy downpours, and increased flooding. All those factors will damage or destroy agriculture and fisheries.
    Disruption of habitats such as coral reefs and Alpine meadows could drive many plant and animal species to extinction.
    Allergies, asthma, and infectious disease outbreaks will become more common due to increased growth of pollen-producing ragweed, higher levels of air pollution, and the spread of conditions favorable to pathogens and mosquitoes.

How You Can Stop Global Warming?

The goal is simple. Carbon dioxide is the climate’s worst enemy. It’s released when oil, coal, and other fossil fuels are burned for energy—the energy we use to power our homes, cars, and smartphones. By using less of it, we can curb our own contribution to climate change while also saving money. Here are a dozen easy, effective ways each one of us can make a difference:
1. Speak up!

What’s the single biggest way you can make an impact on global climate change? “Talk to your friends and family, and make sure your representatives are making good decisions,” Haq says. By voicing your concerns—via social media or, better yet, directly to your elected officials—you send a message that you care about the warming world. Encourage Congress to enact new laws that limit carbon emissions and require polluters to pay for the emissions they produce. “The main reason elected officials do anything difficult is because their constituents make them,” Haq says. You can help protect public lands, stop offshore drilling, and more here.
2. Power your home with renewable energy.

Choose a utility company that generates at least half its power from wind or solar and has been certified by Green-e Energy, an organization that vets renewable energy options. If that isn’t possible for you, take a look at your electric bill; many utilities now list other ways to support renewable sources on their monthly statements and websites.
3. Weatherize, weatherize, weatherize.

“Building heating and cooling are among the biggest uses of energy,” Haq says. Indeed, heating and air-conditioning account for almost half of home energy use. You can make your space more energy efficient by sealing drafts and ensuring it’s adequately insulated. You can also claim federal tax credits for many energy-efficiency home improvements.
4. Invest in energy-efficient appliances.

Since they were first implemented nationally in 1987, efficiency standards for dozens of appliances and products have kept 2.3 billion tons of carbon dioxide out of the air. That’s about the same amount as the annual carbon pollution coughed up by nearly 440 million cars. “Energy efficiency is the lowest-cost way to reduce emissions,” Haq says. When shopping for refrigerators, washing machines, and other appliances, look for the Energy Star label. It will tell you which are the most efficient.
5. Reduce water waste.

Saving water reduces carbon pollution, too. That's because it takes a lot of energy to pump, heat, and treat your water. So take shorter showers, turn off the tap while brushing your teeth, and switch to WaterSense-labeled fixtures and appliances. The EPA estimates that if just one out of every 100 American homes were retrofitted with water-efficient fixtures, about 100 million kilowatt-hours of electricity per year would be saved—avoiding 80,000 tons of global warming pollution.
6. Actually eat the food you buy—and make less of it meat.

Approximately 10 percent of U.S. energy use goes into growing, processing, packaging, and shipping food—about 40 percent of which just winds up in the landfill. “If you’re wasting less food, you’re likely cutting down on energy consumption,” Haq says. And since livestock products are among the most resource-intensive to produce, eating meat-free meals can make a big difference, too.
7. Buy better bulbs.

LED lightbulbs use up to 80 percent less energy than conventional incandescents. They’re also cheaper in the long run: A 10-watt LED that replaces your traditional 60-watt bulb will save you $125 over the lightbulb’s life.
8. Pull the plug(s).

Taken together, the outlets in your home are likely powering about 65 different devices—an average load for a home in the U.S. Audio and video devices, cordless vacuums and power tools, and other electronics use energy even when they're not charging. This "idle load" across all U.S. households adds up to the output of 50 large power plants in the U.S. So don't leave fully charged devices plugged into your home's outlets, unplug rarely used devices or plug them into power strips and timers, and adjust your computers and monitors to automatically power down to the lowest power mode when not in use.
9. Drive a fuel-efficient vehicle.

Gas-smart cars, such as hybrids and fully electric vehicles, save fuel and money. And once all cars and light trucks meet 2025’s clean car standards, which means averaging 54.5 miles per gallon, they’ll be a mainstay. For good reason: Relative to a national fleet of vehicles that averaged only 28.3 miles per gallon in 2011, Americans will spend $80 billion less at the pump each year and cut their automotive emissions by half. Before you buy a new set of wheels, compare fuel-economy performance here.
10. Maintain your ride.

If all Americans kept their tires properly inflated, we could save 1.2 billion gallons of gas each year. A simple tune-up can boost miles per gallon anywhere from 4 percent to 40 percent, and a new air filter can get you a 10 percent boost.
11. Rethink planes, trains, and automobiles.

Choosing to live in walkable smart-growth cities and towns with quality public transportation leads to less driving, less money spent on fuel, and less pollution in the air. Less frequent flying can make a big difference, too. “Air transport is a major source of climate pollution,” Haq says. “If you can take a train instead, do that.”
12. Shrink your carbon profile.

You can offset the carbon you produce by purchasing carbon offsets, which represent clean power that you can add to the nation’s energy grid in place of power from fossil fuels. But not all carbon offset companies are alike. Do your homework to find the best supplier.

https://www.nrdc.org/stories/global-warming-101
https://www.nrdc.org/stories/how-you-can-stop-global-warming

6
শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা— সকাল থেকে রাত পর্যন্ত ডিমের নানা পদের উপর ভরসা রাখেন বেশির ভাগ মানুষ। ডিম প্রায় প্রতিদিনই সব বাড়িতে কম-বেশি আনাও হয়। আট থেকে আশি— ডিম প্রায় সকলেরই পছন্দের তালিকায় রয়েছে। ডিমের স্বাস্থ্যগুণ সম্পর্কে নতুন করে বলার কিছু নেই। তবে জানেন কি ত্বক ও চুলের যথাযথ যত্ন নিতেও ডিম অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপাদান! এ বার ত্বক ও চুলের যত্নে ডিমের চমকপ্রদ ব্যবহার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক…

চুলের যত্নে ডিমের ব্যবহার:

১) আপনার চুল কি অতিরিক্ত রুক্ষ? তাহলে ২টো ডিম ভাল করে ফেটিয়ে তার সঙ্গে ২ চামচ মেয়োনিজ মিশিয়ে সমস্ত চুলে মাখিয়ে শাওয়ার ক্যাপ পরে অন্তত মিনিট কুড়ি ঢেকে রাখুন। এর পর শ্যাম্পু করে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ২-৩ বার এই পদ্ধতিতে যত্ন নিতে পারলে চুলের রুক্ষ ভাব অনেকটাই কেটে যাবে।

২) শীত কালে মাথার ত্বক (স্ক্যাল্প) শুষ্ক হয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে ২টো ডিম ফেটিয়ে তার সঙ্গে ২ চামচ এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগান। অন্তত ৩০ মিনিট রেখে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ২ বার এই পদ্ধতি কাজে লাগাতে পারলে এই সমস্যা দ্রুত কমে যাবে।

৩) আপনার চুল কি অতিরিক্ত তৈলাক্ত আর ভারি? দ্রুত চুল আঁঠালো, চটচটে হয়ে যায়? এই ধরনের সমস্যায় ২টো ডিম ফাটিয়ে তার কুসুম বাদ দিয়ে শুধু সাদা অংশ ভাল করে ফেটিয়ে তার সঙ্গে ১ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এ বার এই মিশ্রণ সমস্ত চুলে মাখিয়ে শাওয়ার ক্যাপ পরে অন্তত মিনিট কুড়ি ঢেকে রাখুন। তার পর ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এতে চুলের অতিরিক্ত তৈলাক্ত ভাব কেটে গিয়ে চুল হয়ে উঠবে উজ্জ্বল, ফুরফুরে।

৪) ডিম আর মধুর মিশ্রণ চুলকে ময়শ্চারাইজ করে। ২টো ডিম, ১ চামচ দুধ আর ১ চামচ মধু মিশিয়ে সমস্ত চুলে মাখিয়ে শাওয়ার ক্যাপ পরে অন্তত মিনিট কুড়ি ঢেকে রাখুন। শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু করে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। চুল হয়ে উঠবে উজ্জ্বল, ফুরফুরে।

ত্বকের যত্নে ডিমের ব্যবহার:

১) শীত কালে শুষ্ক ত্বকের সমস্যা অনেকটাই বেড়ে যায়। এই সমস্যা দূর করতে ১টা ডিমের সঙ্গে আধা চামচ মধু মিশিয়ে এই মিশ্রণ মুখ ও গলায় লাগিয়ে রাখুন (হাত বা পায়েও মাখতে হলে অন্তত ৪-৫টা ডিম আর ৩ চামচ মধু লাগবে)। এর পর হালকা গরম জল দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের শুষ্ক ভাব কমে যাবে।
২) আপনার ত্বক কি নির্জীব হয়ে পড়ছে? নির্জীব, রুক্ষ ত্বককে উজ্জ্বল করতে ২টো ডিম ফেটিয়ে তার সঙ্গে ১ চামচ দই মিশিয়ে ত্বকে মাখুন। এর পর অন্তত ২০-২৫ মিনিট রেখে জল দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। ফল পাবেন হাতেনাতে।

জুমবাংলানিউজ/ জিএলজি

7
১. দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়
বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে খেজুর খাওয়ার পাশাপাশি যদি নিয়মিত এই ফলটির পাতা খাওয়া যায়, তাহলে শরীরের অন্দরে এমন কিছু উপাদানের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে যে দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটে চোকে পড়ার মতো! সেই সঙ্গে নাইট ব্লাইন্ডনেসসহ অন্যান্য চোখের রোগের প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না।
২. অ্যানার্জির ঘাটতি দূর করে

এই ফলটির অন্দরে থাকা প্রাকৃতিক সুগার রক্তে মেশার পর এমন মাত্রায় খেল দেখাতে শুরু করে যে শরীর একেবারে চনমনে হয়ে ওঠে, সেই সঙ্গে মানসিক ক্লান্তি দূর করতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই এবার থেকে যখনই ক্লান্ত লাগবে এক-দুটো খেজুর খেয়ে নেবেন, তাহলেই দেখবেন কেল্লাফতে!
৩. হার্টের ক্ষমতা বাড়ে

ডায়াটারি ফাইবারে সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে নিয়মিত খেজুর খেলে শরীরে “এল ডি এল” বা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে শুরু করে। ফলে হঠাৎ করে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের আশঙ্কা হ্রাস পায়। সেই সঙ্গে এতে উপস্থিত পটাশিয়াম আরো সব হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমায়।
৪. পেটের রোগের প্রকোপ কমায়

প্রচুর পরিমাণ ফাইবার থাকার কারণে নিয়মিত এই ফলটি খেলে বাওয়েল মুভমেন্টে মারাত্মক উন্নতি ঘটে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই কোনও ধরনের পেটের রোগই আর মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে না।

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে প্রতিদিন ৩টি করে খেজুর খেলে শরীরে অন্দরে উপকারী ব্যাকটেরিয়ায় মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ফলে বদ-হজম, কোলাইটিস এবং হেমোরয়েডের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা হ্রাস পায়।

৫. অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে পরিপূর্ণ

খেজুরে প্রচুর মাত্রায় প্রাকৃতির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা একাধিক রোগকে দূরে রাখার পাশাপাশি শরীরের গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। এখানেই শেষ নয়, এই ফলটিতে বেশ কিছু অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রপাটিজও রযেছে, ফলে নিয়মিত খেজুর খেলে সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও অনেকাংশে হ্রাস পায়।
৬. হাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে

খেজুরে উপস্থিত খনিজ এবং ভিটামিন হাড়কে এতটাই শক্তপোক্ত করে দেয় যে বয়স্কালে অস্টিওপোরোসিসের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা একেবারে কমে যায়। প্রসঙ্গত, এই ফলটিতে উপস্থিত সেলেনিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, কপার এবং ম্যাগনেসিয়াম এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।
৭. ওজন বৃ্দ্ধি পায়

নানা কারণে যাদের ওজন মাত্রাতিরিক্ত হারে কমে যেতে শুরু করেছে, তারা আজ থেকেই খেজুর খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন উপকার পাবেন। কারণ এই ফলটিতে উপস্থিত ক্যালরি শরীরে ভাঙন রোধ করে ওজন বৃদ্ধিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।
৮. নার্ভাস সিস্টেমের কর্মক্ষমতা বাড়ায়

খেজুরে উপস্থিত নানাবিধ ভিটামিন এবং খনিজ, বিশেষত পটাশিয়াম নার্ভের কর্মক্ষমতা বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। সেই সঙ্গে ব্রেন পাওয়ার বাড়াতেও এই ফলটি দারুনভাবে সাহায্য করে। এবার নিশ্চয় বুঝেছেন বাচ্চাদের প্রতিদিন কেন খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা।
৯. অ্যানিমিয়ার মতো রোগকে দূরে রাখে

শরীরে আয়রনের ঘাটতি দেখা দিলেই মূলত এই ধরনের রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পায়। তাই তো শরীরে যাতে এই খনিজটির ঘাটতি কোনো সময় দেখা না দেয়, সেদিকে খেয়াল রাখা একান্ত প্রয়োজন। আর এক্ষেত্রে খেজুর দারুনভাবে সাহায্য করতে পারে। কীভাবে? এই ছোট্ট ফলটি আয়রণ সমৃদ্ধি। তাই তো অ্যানিমিয়ার মতো রোগকে দূরে রাখতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।
১০. অ্যালার্জির প্রকোপ কমায়

২০০২ সালে প্রকাশিত এক গবেষণা পত্রে দাবি করা হয়েছিল খেজুরে উপস্থিত সালফার কম্পাউন্ড অ্যালার্জির মতো রোগ থেকে দূরে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই তো যারা সারা বছরই এই রোগে ভুগে থাকেন, তাদের রোজের ডায়েটে এই ফলটির অন্তর্ভুক্তি মাস্ট!

http://bijoy24.com/

8
Allied Health Science / পাট পাতার চা
« on: March 10, 2019, 05:27:10 PM »
বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের তৈরি পাট পাতার এ চা এখন রফতানি হচ্ছে। একই সঙ্গে প্রচলিত চায়ের বিকল্প হিসেবে পাট পাতার চায়ের চাহিদা এখন বাড়তে শুরু করেছে।

যেভাবে তৈরি করবেন : দুইভাবে পাট পাতার চা তৈরি করা যায়। কেটলি বা পাতিলে পানি গরম করে তার মধ্যে পাটের চা পাতা ঢেলে দিতে হবে। প্রতি এক কাপ চায়ের জন্য চা চামচের তিন ভাগের এক ভাগ পাতা লাগবে। ফুটন্ত পানি পাতা ঢেলে ২ থেকে ৩ মিনিট ফোটালেই তা চা হিসেবে পান করা যাবে।

এছাড়া পানি ফুটিয়ে কাপে ঢেলে এর মধ্যে চা চামচের তিন ভাগের এক ভাগ পাতা ভিজিয়ে রাখতে হবে ৪ থেকে ৫ মিনিট। এর পর চা হিসেবে পান করতে হবে। ডায়বেটিস না থাকলে এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে পান করা বেশি স্বাস্থ্যকর।

উপকারিতা : গবেষকরা দেখেছেন পাট পাতার পানীয় ডায়বেটিক, ক্যান্সার, পেটের বিভিন্ন পীড়া, আলসার, উচ্চ রক্তচাপ, রক্তে কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণ, লিভার সুস্থ রাখতে এবং কিডনির ক্ষয় রোধে কাজ করে। এছাড়া অন্যান্য রোগ প্রতিরোধেও পাট পাতার কোমল পানীয় ভূমিকা রাখে। এছাড়া পাট পাতার পানীয়র মধ্যে নানা ধরনের ভিটামিন রয়েছে। যেগুলো শরীরের বিভিন্ন উপকারে লাগে।

https://news.zoombangla.com/

9
দুধ
পুষ্টিকর দুধ দাঁতের স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী৷ কারণ এতে থাকা ক্যালসিয়াম দাঁতকে শক্তিশালী করে৷ এনামেলে শক্তি বৃদ্ধি করে দাঁতকে সাদা ও উজ্জ্বল করে৷
স্ট্রবেরি
মনে হতে পারে লাল রঙের ফলটি কি করে দাঁত সাদা করতে পারে! পারে, কারণ স্ট্রবেরির মধ্যে আছে ম্যালিক অ্যাসিড৷ এই অ্যাসিড আপনার দাঁতকে সাদা করে বলে জানিয়েছেন দন্ত চিকিৎসকরা৷
পেঁয়াজ
অনেকেই জানেন না পেঁয়াজ দাঁতের জন্য ভীষণ উপকারী৷ এর মধ্যে আছে অ্যান্টি-মাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক৷ আর একটি বিষয় হলো পেঁয়াজ স্বচ্ছ৷ তাই এটি খেলে দাঁতে কোন দাগ হয় না৷ চিকিৎসকরা ঠাট্টা করে বলে থাকেন কাঁচা পেঁয়াজ খাওয়ার পর মুখের গন্ধ দূর করতে বেশিরভাগ মানুষ দাঁত মাজেন৷ ফলে দাঁত ঝকঝকে না হয়ে পারে না৷
গাজর
আপেলের মতই কাঁচা গাজর দাঁতের জন্য ভীষণ উপকারী৷ গাজর খেলে দাঁতের ফাঁকে ঢুকে থাকা খাদ্যকণা বেরিয়ে আসে৷ এছাড়া তা দাঁত ও মাড়ির স্বাস্থ্যের জন্য ভালো৷
বাদাম
শক্ত খাবার চিবিয়ে খেলে আপনার দাঁতের ক্ষয় পূরণ হয় এবং দাঁতকে শক্ত করে৷ বিকেলের নাস্তায় আপনি যদি কয়েকটি বাদাম খান, তবে তা আপনার দাঁতকে ঝকঝকে করতে সাহায্য করে৷
আপেল
আপেলে কামড় দেয়ার সাথে সাথে একটা বড় ধরনের আওয়াজ হয়৷ এটা কারো জন্য বিরক্তির কারণ হলেও দাঁতের জন্য কিন্তু দারুণ উপকারী৷ এভাবে কামড়ে যেসব খাবার খাওয়া যায় তা মাড়ির জন্য ভীষণ উপকারী৷ এছাড়া আপেল খাওয়ার সময় যে পরিমাণ লালা নিঃসরণ হয় তাতে মুখের মধ্যকার অনেক ব্যাকটিরিয়া ধ্বংস হয়৷
ব্রকোলি
কেউ যদি দিনের বেলা ব্রকোলি খায় তাহলে তা দাঁতের গায়ে লেগে থাকে৷ ফলে ব্রাশ করলে খুব ভালোভাবে দাঁত পরিষ্কার হয়৷
পনির
শক্ত পনিরে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম রয়েছে৷ এটি দাঁত ও মাড়িকে শক্তিশালী করে৷ তবে সাদা পনির খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন ডাক্তাররা৷ ফলে দাঁতে কোন দাগ হবে না৷
পানি
বেশি পরিমাণ পানি পান করলে আপনার মুখ পরিষ্কার থাকবে৷ তবে রেড ওয়াইন বা ব্ল্যাক কফি কিন্তু আপনার দাঁতে দাগ তৈরি করবে৷ তাই এগুলো খাবার পর প্রতিবার একবার পানি পান করার পরামর্শ দিয়েছেন ডাক্তাররা৷ আর সোডা মেশানো পানি খুব বেশি না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন, কারণ এতে এনামেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷

10
অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন এবং অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের কারণে রক্তনালী ব্লক হওয়া খুবই স্বাভাবিক একটি ব্যাপার। এবং শুধুমাত্র এই কারণে হৃদপিণ্ডের নানা সমস্যায় ভুগতে দেখা যায় অনেককে। এমনকি হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুমুখে পতিত হন অনেক রোগীই।

কিন্তু রক্তনালী ব্লক হওয়ার এই সমস্যা থেকে খুবই সহজে মুক্ত থাকা যায় চিরকাল। আপনাকে এর জন্য প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হবে না একেবারেই। খুবই সহজলভ্য কয়েকটি খাবার আপনার রক্তনালীর সুস্থতা নিশ্চিত করবে।
আপেলঃ
আপেলে রয়েছে পেকটিন নামক কার্যকরী উপাদান যা দেহের খারাপ কোলেস্টেরল কমায় ও রক্তনালীতে প্লাক জমার প্রক্রিয়া ধীর করে দেয়। গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন মাত্র ১ টি আপেল রক্তনালীর শক্ত হওয়া এবং ব্লক হওয়ার ঝুঁকি প্রায় ৪০% পর্যন্ত কমিয়ে দেয়।

ব্রুকলিঃ
ব্রকলিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে যা দেহের ক্যালসিয়ামকে হাড়ের উন্নতিতে কাজে লাগায় এবং ক্যালসিয়ামকে রক্তনালী নষ্ট করার হাত থেকে রক্ষা করে থাকে। ব্রকলির ফাইবার উপাদান দেহের কোলেস্টেরল কমায় এবং উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

দারুচিনিঃ
দারুচিনির অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কার্ডিওভ্যস্কুলার সিস্টেমের সার্বিক উন্নতিতে কাজ করে থাকে। এছাড়াও গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন মাত্র ১ চামচ দারুচিনি গুঁড়ো দেহের কোলেস্টেরল কমায় এবং রক্তনালীতে প্লাক জমে ব্লক হওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।

তৈলাক্ত মাছঃ
তৈলাক্ত মাছ বিশেষ করে সামুদ্রিক তৈলাক্ত মাছের ওমেগা৩ ফ্যাটি অ্যাসিড দেহের ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমিয়ে হৃদপিণ্ডকে চিরকাল সুস্থ ও নীরোগ রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

তিসীবীজঃ
তিসীবীজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আলফা লিনোলেনিক অ্যাসিড যা উচ্চ রক্তচাপ কমায় এবং রক্তনালীর প্রদাহকে দূর করতে সহায়তা করে এবং সেই সাথে রক্তনালীর সুস্থতা নিশ্চিত করে।

গ্রিন টিঃ
গ্রিন টি অর্থাৎ সবুজ চায়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যাচেটিন যা দেহে কোলেস্টেরল শোষণ কমায় এবং হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে বিশেষভাবে সহায়তা করে। প্রতিদিনের চা কফির পরিবর্তে গ্রিন টি পান করলে দেহের সুস্থতা নিশ্চিত হয়।

কমলার রসঃ
গবেষণায় দেখা যায় প্রতিদিন ২ কাপ পরিমাণে শুধুমাত্র বিশুদ্ধ কমলার রস পান করলে রক্ত চাপ স্বাভাবিক থাকে। এবং কমলার রসের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রক্তনালীর সার্বিক উন্নতিতে কাজ করে ফলে রক্তনালী ড্যামেজ হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পায়।

https://news.zoombangla.com/1fgjhk-yuytru-fgkgh14/

11


সুশাসন নিশ্চিত করার জন্য চাই গতিশীল ও দক্ষ প্রশাসন। উন্নত প্রশিক্ষণ ছাড়া দক্ষ প্রশাসন অসম্ভব। জনপ্রশাসনে দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের আওতায় সরকার চলতি বছর থেকে উচ্চতর শিক্ষায় ‘প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ’ চালু করেছেন, যা নিঃসন্দেহ প্রশংসার দাবিদার। প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপে মাস্টার্সের জন্য ৬০ লাখ ও পিএইচডির জন্য ২ কোটি টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই ফেলোশিপ কাদের, কীভাবে ও কোথায় অধ্যয়নের জন্য দেওয়া হবে, সে বিষয় কিছু জিজ্ঞাসা থেকে যায়। কারণ জনগণের অর্থের সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহার করা সরকারের দায়িত্ব। তা ছাড়া, বৈষম্যহীন সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা সরকারের অঙ্গীকার। কিন্তু, এ ফেলোশিপের পরতে পরতে রয়েছে বৈষম্য, অথচ বৈষম্যহীন সমাজব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য বঙ্গবন্ধু আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন।
চলুন, দেখা যাক বৈষম্য কোথায়? কাদের জন্য এই ফেলোশিপ? বিসিএস কর্মকর্তাদের জন্য ৭০ ভাগ, অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তার জন্য ২০ ভাগ ও সর্বসাধারণের জন্য ১০ ভাগ। ফেলোশিপ কেবল যদি প্রশাসনে গতিশীলতা আনার জন্য হয়, তবে অন্যদের ১০ ভাগ রহিত করা উচিত। ৭০ শতাংশ বিসিএস কর্মকর্তার বদলে ১০০ শতাংশ সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে মেধানুসারে বণ্টন করা হোক। যদি তা সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়, তবে কোটা বাতিল করা উচিত। কোনো বিশেষ শ্রেণির জন্য কোটা সৃষ্টি করা অনাবশ্যক। তা ছাড়া আমাদের সংবিধানে কেবল অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর জন্য কোটার কথা বলা হয়েছে। বিসিএস কর্মকর্তারা নিশ্চয় অনগ্রসর জনগোষ্ঠী নন। তা ছাড়া, সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে বিভাজন জনপ্রশাসনে অস্থিরতা সৃষ্টি করতে পারে।
আবার বলা হয়েছে, পিএইচডির জন্য সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৪৫ বছর। উন্নত দেশের ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করতে ন্যূনতম সময় লাগে ৪-৫ বছর। পিএইচডি শেষ করতে বয়স হবে ৫০ বছর। সরকারি চাকরিতে অবসরের বয়স ৫৭ বছর। মাত্র ৭ বছর সেবা নেওয়ার জন্য কারও পেছনে ২ কোটি টাকা ব্যয় অনেকাংশে অপচয়ের শামিল। উপরন্তু দেশে ফিরলে কেবল দুবছর চাকরি করার বাধ্যবাধকতা আছে। সে ক্ষেত্রে দুবছর সেবা পেতে ২ কোটি টাকা! তা ছাড়া, বিশ্বের বেশির ভাগ পিএইচডি স্কলারশিপের ক্ষেত্রে বয়সসীমা ৩৫ বছর নির্ধারিত থাকে। অধিক বয়সে পিএইচডি করা দুরূহ ব্যাপার। তাই প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপে পিএইচডির বয়সসীমা ৩৫ বছর করাই যুক্তিযুক্ত।
মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাদের রক্তে ভেজা মাটি থেকে এ দেশে চারা গজায়। অথচ তাদের সন্তান-সন্ততিদের জন্য সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ কোটা যে বৈষম্যের দোহাই দিয়ে বাতিল করা হল, সে বৈষম্য চালু হল নতুন সংস্করণে। এবার কোটা মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নয়, বিসিএস কর্মকর্তাদের জন্য। যারা বিসিএস কর্মকর্তা হওয়ার তরে মুক্তিযোদ্ধাদের কোটা বাতিলের জন্য নিজেকে রাজাকার পরিচয় দিতে কুণ্ঠাবোধ করেনি, তাদের জন্য ‘প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ’ নামে চালু করা হচ্ছে অভিজাত কোটা। তবে কি তারা এই কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন করবেন? নাকি মনের আনন্দে এই কোটার সুফল ভোগ করবেন? নিশ্চয় তারা অবিবেচক হবেন না। যাই হোক, সে ফয়সালা তাদের ওপর।
সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ভারত সফরের সময় দুই হাজার সরকারি কর্মকর্তার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে সে দেশের সরকারের সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এটি একটি ভালো উদ্যোগ। প্রশাসনে গতিশীলতা আনতে কেবল ভারত নয়, বিশ্বের উন্নত দেশে সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো উচিত। এখনো মাঝে মধ্যে পাঠানো হয়। অবাক করা বিষয় হল, এবার প্রশিক্ষণ নয়, সরকার উচ্চশিক্ষার্থে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ‘প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ’ চালু করেছেন।
প্রশ্ন হল সরকারি কর্মকর্তাদের কি পিএইচডি করা খুবই দরকার? বিশ্বের কোন কোন দেশের সরকারি কর্মকর্তারা সরকারের খরচে পিএইচডি করেন? পিএইচডি একটি বিশেষায়িত ডিগ্রি। এটি যারা ভবিষ্যতে শিক্ষক ও গবেষক হতে চায়, তাদের জন্য প্রযোজ্য। অন্যরা করতে পারেন। কিন্তু আবশ্যক নয়। আমাদের জাতীয় শিক্ষা নীতি কি বলে? ‘চার বছরের স্নাতক সম্মানকে সমাপনী ডিগ্রি হিসাবে ও উচ্চশিক্ষায় শিক্ষকতা ও গবেষণা ব্যতীত সব কর্মক্ষেত্রে যোগদানের প্রয়োজনীয় যোগ্যতা হিসাবে বিবেচনা করা হবে।’ তাহলে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য প্রশিক্ষণ কি যথেষ্ট নয়? বিতর্কে না গিয়ে ধরে নিলাম, তাদের পিএইচডি ডিগ্রি দরকার ও তারা তা অর্জন করুক। এখনো অনেকে নিজ চেষ্টায় ও সরকারি উদ্যোগে তা করছে বটে।
একটা উদাহরণ দিলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে। ধরুন, একজন রসায়নে মাস্টার্স করে বিসিএস দিয়ে প্রশাসনে চাকরি নিলেন। এবার তিনি সরকারি বৃত্তি নিয়ে হার্ভার্ড থেকে রসায়নে পিএইচডি করলেন। সিন্থেসিসের ওপর যথেষ্ট ভালো কাজ করে দেশে ফিরে গেলেন। বলুন, প্রশাসনের কোনো জায়গায় উনি সিন্থেসিস করবেন? ভবিষ্যতে বাংলাদেশে তিনি কি গবেষণা করবেন? তবে হ্যাঁ কিছু বিষয়, যেমন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, জনপ্রশাসন, ব্যবস্থাপনা, ক্রিমিনোলজি (পুলিশদের জন্য), অর্থনীতি—এ ধরনের মুষ্টিমেয় দু-একটি বিষয়ে পিএইচডি করলে বাংলাদেশের প্রশাসন লাভবান হতে পারে। তাও অপরিহার্য নয়। যেকোনো বিষয়ে গণহারে এ বৃত্তি জনগণের করের টাকার অপচয় ছাড়া কিছু নয়।
বছরে কেবল যদি ১০ জনকে মাস্টার্স ও ১০ জনকে পিএইচডির জন্য নির্বাচন করা হয়, তাতে সরকারের খরচ হবে ২৬ কোটি টাকা। অথচ ২৬ কোটি টাকায় বাংলাদেশে উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য একটা প্রতিষ্ঠান করা যাবে। এভাবে বৃত্তির নামে জনগণের ঘামের টাকা বিদেশে পাচারের কোনো মানে হয় না। বাংলাদেশের অনেক উচ্চশিক্ষিত ও প্রশিক্ষিত যুবক যারা নিজে বৃত্তি জোগাড় করে বিদেশে পড়াশোনা করে দেশে ফিরতে চায়। সরকার একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট করে বিষয়ভিত্তিক উচ্চশিক্ষিত, প্রশিক্ষিত ও অভিজ্ঞদের নিয়োগ দিয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের পিএইচডি দেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারেন। নতুবা দেশের কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে পেশাদার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে পারেন ও এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের সক্ষমতা অর্জনে যে সব বিষয়ে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে সেসব বিষয়ে পিএইচডি ও মাস্টার্স প্রোগ্রাম চালু করে সরকারি কর্মকর্তাদের প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ দিয়ে এসব প্রোগ্রামে ভর্তি করানো যেতে পারে। তাতে জনগণের করের টাকা জনগণের কাছে ফিরে যাবে। বাংলাদেশে উন্নত প্রশিক্ষণ ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। ‘প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ’ পাওয়া প্রশিক্ষণার্থীদের টাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন হবে, যা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে চালু থাকবে।
প্রয়োজন হলে বিদেশ থেকে দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রশিক্ষক ও শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে। প্রয়োজনে সরকার দক্ষ ও বিজ্ঞ সাবেক আমলাদের (ড. আকবর আলী খান, ড. সাদাত হোসেন, এ টি এম শামসুল হুদা, আলী ইমাম মজুমদার, ড. ফরাস উদ্দিন) প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে নিয়োগ দিতে পারে। আমাদের দেশের প্রশাসনের সমস্যা কোথায় তাঁদের চেয়ে ভালো কেউ বুঝবে না। তা না হলে আমাদের প্রশাসনের অবস্থা হবে মগবাজারের উড়াল সেতু অর্থাৎ ডানহাতি গাড়ি চালকের দেশে বাম হাতি গাড়ি চালকের সেতুর মতো।
বিচারকদের জন্য সরকার বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট করেছে। বিসিএস কর্মকর্তাদের জন্য তেমন ইনস্টিটিউট করতে পারে অথবা সাভারে যে বিপিএটিসি আছে তাকে আধুনিকায়ন করে গবেষণার উপযুক্ত দেশের খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংযুক্ত করে সেখান থেকে সরকারি কর্মকর্তাদের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মাস্টার্স ও পিএইচডি ডিগ্রি দেওয়া যেতে পারে। প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপের টাকা বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে খরচ করা হলে দীর্ঘ মেয়াদে বাংলাদেশের কোনো অর্জন হবে না। আর যদি বিষয়টা এমন হয়, কেবল বিদেশে যাওয়াটাই উদ্দেশ্য, তাহলে যত বাধ্যবাধকতাই দেওয়া হোক, তাদের অনেকে দেশে ফিরবেন না। অনেকে সরকারি টাকা বিদেশে খরচ করে পরিবারকে বিদেশে অভিবাসী করবেন যাতে অবসরোত্তর সময়টা বিদেশে কাটাতে পারেন।
নব্বইয়ের দশকে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার সায়েন্স, বিবিএ, এমবিএ ও ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার জন্য ভারতে পাড়ি দিত। এক দশকে বাংলাদেশ কোটি কোটি টাকা হারিয়েছে। কিন্তু এখন আর কেউ এসব বিষয় পড়ার জন্য ভারতে যায় না। কারণ আমাদের বেসরকারি বিশ্ববদ্যালয়গুলো এসব বিষয়ে ভালো শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। বস্তুত, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত ছিল যুগান্তকারী।
আমাদের প্রবাসীরা দিনরাত পরিশ্রম করে দেশে অর্থ পাঠায় আর সে অর্থ যদি সরকারি কর্মকর্তারা উচ্চশিক্ষার নামে বিদেশে খরচ করেন, তা হবে নিতান্তই দুঃখজনক। আশা করি সরকার আরেকটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে জনগণের অর্থের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করবেন।

https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1582500/

12
প্রতিদিন কাঠবাদাম খেলে অথবা মুখে লাগালে ত্বক থাকে চিরনতুন। সেই সঙ্গে ভেজানো কাঠবাদাম বেঁটে যদি মুখে মাখা যায়, তাহলে তা প্রাকৃতিক ক্রিমের মতো কাজ করে। এছাড়াও, ত্বক যদি শুষ্ক হয়, সেই সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করে কাঠবাদাম। এক্ষেত্রে কিছুটা ফেটানো ক্রিম, বেঁটে রাখা কাঠবাদামের সঙ্গে মিশিয়ে মাখতে হবে।

13
গবেষণা বলছে, মানবজাতির অর্ধেকের কাছাকাছি প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ বছরে অন্তত একবার মাথাব্যথায় আক্রান্ত হয়। বিভিন্ন প্রকারের মাথাব্যথা রয়েছে, যেমন- মাইগ্রেন, সাইনাস, ক্লাস্টার হেডেক এবং দুঃশ্চিন্তা ও চোখের সমস্যা থেকে সৃষ্ট মাথাব্যথা। দুশ্চিন্তা থেকে তৈরি হওয়া মাথাব্যথা সবচেয়ে বেশি হতে দেখা যায় এবং বিশ্বজুড়ে প্রায় ১.৬ বিলিয়ন লোক এতে আক্রান্ত।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মাথাব্যথা শুরুর আগে সতর্ক হওয়ার সময় পাওয়া যায় না। যেহেতু মাথাব্যথা শুরুর আগে আপনি জানবেন না কখন মাথাব্যথা শুরু হতে পারে তাই আপনাকে জানতে হবে কিভাবে মাথাব্যথা দ্রুত সারিয়ে তোলা যায়। তাই আপনার জন্য থাকছে যেকোনো পরিস্থিতে মাথাব্যথা সারিয়ে তোলার ১০টি কৌশল। তবে প্রথমে নিশ্চিত হয়ে নিন যে আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক রয়েছে। রক্তচাপ স্বাভাবিক না থাকলে এই কৌশলগুলো কাজে লাগাবেন না।

1. তাপমাত্রা থেরাপি

গরম পানিতে গোসল করলে আমাদের মাংসপেশি নমনীয় হয় এবং এতে মাথাব্যথা কমে যায়। কিন্তু সবসময় তো আর গোসল করার সুযোগ থাকে না, সেই ক্ষেত্রে তোয়ালে গরম করে মাথা মুড়ে নিন। দেখবেন ভালো লাগতে শুরু করেছে।

2. অ্যারোমাথেরাপি
অ্যারোমা মানে সুগন্ধি। অর্থাৎ সুগন্ধি আপনার মাথাব্যথা সারিয়ে তুলতে পারে। অ্যারোমাথেরাপিতে ব্যবহার হয় বিভিন্ন রকম এসেনশিয়াল অয়েল। বিশেষ করে ল্যাভেন্ডার অয়েল মাথাব্যথা সারিয়ে তোলার ব্যাপারে বেশ কার্যকর। হাতে ল্যাভেন্ডার অয়েল নিয়ে কপাল এবং চোয়ালে মেখে ঘরের আলো নিভিয়ে কিছুক্ষণ নিঃশ্চুপ নিরিবিলিতে শুয়ে থাকুন। দেখবেন ধীরে ধীরে ব্যথা কমে যাচ্ছে।

ইরানের সিরাজ ইউনিভার্সিটির এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, পিপারমেন্ট অয়েলও মাথাব্যথা সারিয়ে তুলতে সক্ষম। এই তেল মাইগ্রেনের ব্যথাও সারিয়ে তুলতে সমান দক্ষতা দেখিয়েছে।

3. পানি পান করুন
পানি স্বল্পতা মাথাব্যথার অন্যতম কারণ। মাথাব্যথা দূরে রাখতে চাইলে, নিজেকে সতেজ রাখুন। যখনই মনে হবে মাথাব্যথা শুরু হচ্ছে, পানি পান করতে হবে। তবে এ সময় মাথায় রাখবেন, যেন অতিরিক্ত পানি পান করা না হয়। এতে হাইপোনেট্রেমিয়া হয়ে যেতে পারে। হাইপোনেট্রেমিয়া হলো রক্তে উপস্থিত সোডিয়ামের পরিমাণ কমে যায়। এর ফলে মাথাব্যথা, বমিভাব এবং হেঁচকির মত ঘটনা ঘটতে শুরু করে, যা পানি স্বল্পতাজনিত মাথাব্যথার সাথে গুলিয়ে ফেলেন অনেকে।

4. ভেষজ চিকিৎসা
সাধারণ মাথাব্যথা থেকে শুরু করে মাইগ্রেনের মত তীব্র ব্যথা সারাতেও প্রাচীন কাল থেকে আদার ব্যবহার হয়ে আসছে। সাম্প্রতিক বিভিন্ন গবেষণায়ও এর প্রমাণ মিলেছে। মাথাব্যথা শুরু হলে, আধা চা চামচ আদা দিয়ে তৈরি এক গ্লাস আদার জুস পান করুন।

5. ইউনিয়ন ভ্যালিতে মাসাজ
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: এই বিন্দুটি পাওয়া যাবে বৃদ্ধাঙ্গুলি এবং তর্জনীর মধ্যবর্তী স্থানে যে বাক তৈরি হয় সেখানে।

পদ্ধতি: প্রথমে বিন্দুটি খুঁজে বের করুন এবং খুব আস্তে চাপ দিতে থাকুন। এরপর ১০ সেকেন্ড চেপে ধরে রাখুন। ১০ সেকেন্ড পর, জায়গাটি বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মাসাজ করে দিন। ঘড়ির কাটার দিকে ১০ সেকেন্ড, আর ঘড়ির কাটার বিপরীতে ১০ সেকেন্ড করে মাসাজ করুন।

আপনার অন্য হাতেও একই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করুন। এই আকুপ্রেশার পয়েন্টটি দুঃশ্চিন্তাজনিত মাথায় এবং ঘাড়ের ব্যথা দূর করতে বেশ কার্যকর।

6. সিন ইয়ান জিয়াও পয়েন্টে আকুপ্রেশার
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: এই আকুপ্রেশার পয়েন্টটি গোড়ালি থেকে ৪ আঙ্গুল উপরে অবস্থিত।

পদ্ধতি: পয়েন্টটি খুঁজে বের করুন এবং বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে হালকা চাপ দিয়ে ৪-৫ সেকেন্ড মাসাজ করুন। এই পয়েন্টে চাপ প্রয়োগ করলে মানসিক চাপ কমে এবং মন প্রশান্ত হয়।

7. চেতন বিন্দুতে চাপ
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: ঘাড়ের পেছনে লম্বা হয়ে নেমে আসা দুটি মাংসপেশি এবং মাথার খুলির মাঝে যে ফাঁকা অংশ সেখানে এই বিন্দুটি অবস্থিত।

পদ্ধতি: উভয় হাতের তর্জনী এবং মধ্যমা দিয়ে হালকা করে ১০ সেকেন্ড দুই পাশ থেকেই চাপ দিয়ে ধরে রাখুন। ১০ সেকেন্ড পর ছেড়ে দিন এবং আবার করুন। এতে মানসিক চাপজনিত মাথাব্যথা কমে যাবে। এই কৌশল মাইগ্রেনের ব্যথাতেও সমান কার্যকরী।

8. ড্রিলিং ব্যাম্বু পয়েন্টে মাসাজ
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: এই বিন্দুটি নাকের উভয় পাশে অবস্থিত, যেখানে নাক দুই ভ্রুর সাথে গিয়ে মেশে।

পদ্ধতি: আপনার তার্জনি দিয়ে দুইপাশে ধারাবাহিক ভাবে আলতো করে চাপ দিন এবং ১০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। ১০ সেকেন্ড পর ছেড়ে দিন এবং কয়েক মুহূর্ত পর আবার চাপ দিয়ে ধরুন।

এই চাপ বিন্দুটিতে মাসাজ করে চোখের চাপজনিত ব্যথা এবং সাইনুসাইটিসের ব্যথাও নিরাময় করা সম্ভব।

9. সোল্ডার ওয়েল লোকেশনে মাসাজ
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: ঘাড় এবং কাঁধের মিলনস্থলে এই বিন্দুটি অবস্থিত।

পদ্ধতি: আপনার বাম পাশে অবস্থিত বিন্দুটি ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে ১ মিনিট ধরে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে মাসাজ করুন। ১ মিনিট পর একই প্রক্রিয়ায় ডান পাশের বিন্দুতেও মাসাজ করুন।

এই মাসাজের ফলে ঘাড় ও কাঁধের শক্ত হয়ে যাওয়া পেশী নমনীয় হবে এবং এর কারণে সৃষ্ট মাথাব্যথাও দূর হয়ে যাবে।

10. চোখের দু’পাশে মাসাজ
কিভাবে চিহ্নিত করবেন: এই বিন্দুটি উভয় চোখের বাইরের দিকের কোনায় অবস্থিত।

পদ্ধতি: তর্জনী এবং মধ্যমা দিয়ে চোখের দু’পাশের এই বিন্দু দুটি সমান তালে ব্যথা না কমা পর্যন্ত ডলতে থাকুন।

এই মাসাজটি মাইগ্রেনের কারণে সৃষ্ট মাথাব্যথায় বেশ ভালো কাজ করে।

http://inkbd.com/news/2019/01/19/8088/?fbclid=IwAR1ijH-pPJjXTAzkuQ-1p_V1bErMa21-0pQi7UFa-zV3KOdVG2l2BLmt62E

14
Allied Health Science / What Are the Benefits of Eating Almonds Daily?
« on: February 04, 2019, 03:43:30 PM »
Natural, unsalted almonds are a tasty and nutritious snack with plenty of health benefits. Loaded with minerals, they are also among the healthiest of tree nuts. Just a handful of nutrient-rich almonds a day helps promote heart health and prevent weight gain, and it may even help fight diseases like diabetes and Alzheimer's.

Nutrition

Eating about 23 almonds a day is an easy way to incorporate many crucial nutrients into your diet. Almonds are rich in vitamin E, calcium, magnesium and potassium. Additionally, almonds are a significant source of protein and fiber, while being naturally low in sugar. One 23-almond serving packs 13 grams of healthy unsaturated fats, 1 gram of saturated fat and no cholesterol or salt. Of all tree nuts, almonds rank highest in protein, fiber, calcium, vitamin E, riboflavin and niacin content by weight. There are 160 calories in 23 almonds. While many of these calories come from fat, it is primarily the healthy unsaturated fats and not the unhealthy saturated kind.
Heart Health

According to the FDA, eating 1.5 ounces a day of most nuts, like almonds, may reduce the risk of heart disease. Many of the nutrients in almonds help contribute to increased heart health. For one, almonds are rich in magnesium, which is critical in preventing heart attacks and hypertension. And a study published in the Journal of the American Heart Association in 2015 found that almonds reduced cardiovascular disease risk factors, including "bad" LDL cholesterol levels and belly fat.
Weight Maintenance

Nuts, like almonds, are also beneficial for maintaining a healthy weight. The fiber, protein and fat content of almonds means it only takes a handful to keep you feeling full and satisfied so you won't have the urge to overeat. The magnesium in almonds helps regulate blood sugar, which is key in reducing food cravings. Almonds may even be able to block the body’s absorption of calories, making them the ultimate weight-loss-friendly snack. Because almonds are naturally high in calories, it’s important to limit your serving size to the recommended 1 ounce, or 23 nuts.
Other Health Benefits

Almonds may also promote gastrointestinal health and even combat diabetes. The high fiber content of almonds gives them prebiotic properties, which contributes to health in the gastrointestinal tract. Prebiotics are non-digestible food substances, which serve as food for the good bacteria in the intestinal tract and help maintain a healthy balance. According to a study by the American Diabetes Association, a Mediterranean diet incorporating nuts, such as almonds, helps fight diabetes even without significant changes to weight, physical activity or caloric intake.


https://healthyeating.sfgate.com/benefits-eating-almonds-daily-5007.html

15
Nutrition and Food Engineering / True for us...
« on: April 28, 2018, 05:01:11 PM »
যারা 1990 সালের আগে জন্মেছেন তারা বিশেষ ভাগ্যবান আজকের পৃথিবীতে..

কেন?? 💭💭💭💭💭💭💭💭

.....আমরা সমস্ত প্রযুক্তির ব্যবহার জানি এবং উপভোগ করি ......!!!
         
কিন্তু .....
👍     

আমরা কখনো বইয়ের পাহাড় মাথায় করে বিদ্যালয় যাই নি।

👌আমাদের মা বাবাকে কখনো আমাদের পড়াশোনার চিন্তায় নিজেদের জীবন ব্যতিব্যস্ত করতে হয় নি...!

👍    স্কুলের পরেও সূর্যাস্ত পর্যন্ত বন্ধুদের সাথে চুটিয়ে খেলতাম প্রান খুলে.....

👍 আমরা প্রাকৃতিক বন্ধুদের সাথে জীবন কাটাতাম, net  friends দের সাথে নয়......।
👍     

যখনই তৃষ্ণার্ত থাকতাম মন খুলে কল থেকে জল খেতাম,  জীবানুর ভয়ে pure it থেকে নয়.. ✌✌✌✌✌

তাও অসুস্থ হয়ে পড়ি নি💪💪💪💪।

👍     আমরা ১ টাকার আইসক্রিম ৪ জন ভাগ করে খেয়েও পেট খারাপ করে বসি নি।💥💥💥

👍     আমরা প্রতিদিন পেট ভরে ভাত আর প্রান খুলে মিষ্টি খেয়েও মোটা হয়ে পড়ি নি।😇😇😇😇

👍     খালি পায়ে জমিতে ফুটবল খেলা সত্বেও পা ভেঙে ফেলিনি💫💫💫💫💫💫।

👍সুস্থ থাকার জন্য কখনো revital দরকার হয় নি 👮👮👮👮👮।

👍     খেলনা আমরা নিজেরাই বানিয়ে খেলতাম 👬👬👬👬।

👍     মা বাবার কাছে থেকেই মানুষ হয়েছি,  mentor দরকার হয় নি ।

👌আমরা সব ভাই বোনেরা একরকম জামা কাপড় পরে মজা পেতাম ..common বলে নয়....

একরকম হওয়ার আনন্দে..
😍😍😍😍😍😍

👍     শরীর খারাপ হলে ডাক্তার আমাদের কাছে আসতো,  আমরা ওই অবস্থায় যেতাম না।😷😷😷😷

👍     আমাদের কাছে  মোবাইল, DVD's, Play station, Xboxes, PC, Internet, chatting ছিল না

 কারন আমাদের কাছে সত্যিকারের বন্ধু আছে ।

👍 বন্ধুকে না জানিয়ে তার ঘরে গিয়ে একসাথে খাওয়া দাওয়া করে মজা পেতাম । কখনো ফোন করে appointment নিতে হয় নি।
😎😎😎😎😎😎😎

We are not special, but we are fortunate and enjoying generation
👍
যখন আমরা ছোট ছিলাম
🙋💁
হাতগুলো জামার মধ্যে
ঢুকিয়ে নিয়ে বলতাম,
আমার হাত নেই,

একটা পেন ছিল,
যার চার রকম কালি,
আর আমরা তার চারটে
বোতাম একসাথে টেপার চেষ্টা করতাম,
🏠🚪
দরজার পিছনে লুকিয়ে
থাকতাম কেউ এলে চমকে দেব বলে,
সে আসতে দেরি করছে
বলে অধৈর্য হয়ে বেরিয়ে আসতাম,
🌙🏃
ভাবতাম আমি যেখানে যাচ্ছি,
চাঁদটা ও আমার সঙ্গে সঙ্গে যাচ্ছে
,
💡👆
সুইচের দুদিকে আঙুল চেপে অন্-অফ এর মাঝামাঝি ব্যালেন্স
করার চেষ্টা করতাম,
💧💧
দু -ফোটা জল ফেলে
রেস করাতাম,
কোনটা গড়িয়ে আগে নীচে পড়ে,
☔🍀
বৃষ্টি হলে ছাতা না নিয়ে কচু বা কলাপাতা মাথায় দিয়ে বলতাম,
দ্যাখ জল গায়ে লাগছে না,
🎒
তখন আমাদের শুধু একটা জিনিসের খেয়াল রাখার দায়িত্ব ছিল,
সেটা হল স্কুলব্যাগ,
🙇🏉🌱
ফলের দানা খেয়ে ফেললে দুশ্চিন্তা করতাম,
পেটের মধ্যে এবার গাছ হবে,
🏡🏃
বাসায় মেহমান আস‌লে  তার জুতা লু‌কি‌য়ে রে‌খে  রা‌তে থাকতে জন্য বাধ্য করা
(surprised)(surprised)(surprised)
ঘরের মধ্যে ছুটে যেতাম,তারপর কি দরকার ভুলে যেতাম,
ঘর থেকে বেরিয়ে আসার পর মনে পড়ত....
👦👧
মনে আছে ❓
👭👬👫
যখন আমরা ছোট ছিলাম তখন ধৈর্য্য সহ্য হতনা যে কবে বড় হব,
👨👩👴👮👳👲👷
আর এখন মনে করি, কেন যে বড় হলাম ❗
🙆🙅💁🙋
Childhood was the best part of our life.
📃📄

ছোটবেলায় সবথেকে বেশিবার জিজ্ঞাসিত প্রশ্নটার উত্তর আমি পেয়েছি অবশেষে...
🎅
-তুমি বড়ো হয়ে
কি হতে চাও❓❔❓
🚣🚴🏊
উত্তর-
আবার ছোট হতে চাই৷

- Collected


Pages: [1] 2 3