Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Arif Hossain

Pages: [1]
1
"Google Says the Best Bosses in the World Do These 10 Things"


A company could spend all the money it wants recruiting, interviewing, and hiring the best people around. But if the boss is a jerk, those people will leave the first chance they get.

In contrast, if you have great managers and team leads, not only will you get the best out of your people, but they'll also be more likely to stick around.

For over 10 years, Google has conducted research under the code name Project Oxygen. The goal? Figuring out what makes the perfect manager, so it could train its leaders to develop those behaviors. The research has paid off, as over the years Google has seen marked improvement in employee turnover, satisfaction, and performance.

Interestingly, technical skill mattered much less than you might guess. What was far more important for managers were emotional intelligence skills--the ability to understand and control emotions (both their own and those of their people).


Check out the 10 behaviors that make up the perfect boss, according to Google.

1. Is a good coach
Rather than solve every problem as soon as it arises, the best managers use problems as teaching moments.

They guide their teams and share insights when needed. This allows their team to gain valuable experience and grow.

2. Empowers team and does not micromanage
"I love to be micromanaged," said no employee, ever.

In contrast, great managers give their people the freedom they crave: freedom to explore their ideas, to take (smart) risks, and to make mistakes. They also provide the physical tools their people need, and allow for flexible schedules and working environments.

3. Creates an inclusive team environment, showing concern for success and well-being
In another research project, Google discovered that the single greatest key to a team's performance was creating a "psychologically safe" environment.

As Google puts it:

In a team with high psychological safety, teammates feel safe to take risks around their team members. They feel confident that no one on the team will embarrass or punish anyone else for admitting a mistake, asking a question, or offering a new idea.

In other words, great teams thrive on trust--and great managers help build that trust.

4. Is productive and results-oriented
The best managers are more than star players--they make their teammates better, too.

They do so by setting the right example and getting down and dirty whenever necessary. They're not afraid to roll up their sleeves and help out, and that motivates their team.

5. Is a good communicator--listens and shares information
The best managers are great listeners. This helps them to better understand their teams, and show appropriate empathy.

Additionally, good managers realize knowledge is power. That's why they are transparent and willing to share information with their teams, so their people know the "why" behind the "what."

6. Supports career development and discusses performance
Great managers encourage their people by sharing sincere and specific praise. But they aren't afraid to share critical feedback, too--making sure to frame it in a way that is both tactful and constructive.

They also invest in their people by helping them reach their personal career goals. By doing so, they naturally motivate their teams to give back.

7. Has a clear vision/strategy for the team
Great managers know exactly where the team is right now, where they are headed, and what they need to do to get there. Through good communication, they help keep the team on track.

They also make sure each team member understands their individual role in executing that strategy.

8. Has key technical skills to help advise the team
Great managers understand the jobs of their people, including their everyday tasks and challenges.

If the manager is moved into a new department, he or she will take time to get to know how things are done, and work to build trust before making drastic changes or offering advice.

9. Collaborates effectively
Bad managers view their team as a silo, working against or even sabotaging other teams within the same company.

In contrast, great managers see the big picture. They work for the good of the company as a whole, and encourage their teams to do the same.

10. Is a strong decision maker
Great managers aren't impulsive, but they are decisive. After getting to know the facts and considering the thoughts and perspectives of their teams, they move things forward--even if that requires making a decision not everyone will approve of.

Then, they commit to those decisions.

If your company can train and promote managers who do these 10 things, you'll build trust and inspire your people to become the best versions of themselves.

They'll follow, not because they have to. But because they want to.

2
Online Education / The Prospects and Promises of E-learning
« on: July 04, 2019, 06:28:39 PM »
The Prospects and Promises of E-learning
Syeda Erum Noor and Mayabee Arannya

Technological advancement is ensuring convenience for us in almost every step of our lives, starting with online shopping, ride-sharing services, and of course, food order and delivery. To kick things up a notch, technology has now made its place into the world of education in what we call “e-learning”. E-learning, or electronic learning, is a way for students to educate themselves, usually by using the internet. It acts as a platform that connects teachers and students from all across the globe. It can also work as a resource that complements the topics children learn about in school.E-learning is still quite new to the Bangladeshi educational scene but with more and more people connected to the internet, it is quickly becoming a crucial part of learning. However, the introduction of e-learning would mean many would have to change their conventional ways of learning. Would all that change be worthwhile? Let’s look at how e-learning is different from traditional learning methods. Although e-learning has been a blessing for most, there are a few factors that make people choose conventional means of learning over e-learning. Even so, we must remember that school isn’t as accessible to the children of the remote locations in Bangladesh, as it is to the children of major cities and towns. Razi Uddin Ahmed, Director at TutorsInc, a new, up-and-coming e-learning organisation, shared his story with us, saying, “When we were young, many a times we had to travel across the city in order to get the help we needed. We’re trying to make education accessible to those who can’t do that. We’re trying to bring education to them instead of them having to chase it down.” But what is it that makes such organisations stand out? What can they offer that traditional schools cannot? Jahanara Akhter, Education Coordinator at JAAGO Foundation, explains, “This not only educates them but also modernists them, as they learn how to use technology.”

As technology grows and evolves, we have to ensure the children are evolving with it. They need to be accustomed to the idea of working with technology, especially in this modern world where most tasks, starting from careers to daily activities require them to be adequately trained in the technological fields.

When asked whether e-learning organisations could someday replace conventional learning, one of the teachers at TutorsInc, Sharar Galeeb Chowdhury, says, “For remote areas, e-learning is definitely the future, where the infrastructure to host full-fledged institutions have not yet reached.”

Although, a holistic education isn’t one that only teaches you how to read or do math but one that teaches you many other important skills you may need in life. In school, children learn how to interact with one another and how they can peacefully and efficiently work together. These are all vital lessons that they will definitely need in a working environment.

Tasneem Batool, teacher at TutorsInc, says, “If they’re only learning through e-learning, they may end up having a lack of discipline and missing out on learning other important skills such as communication and social skills.” The best conclusion we can come to is to have a good balance between e-learning and conventional learning. When you think about it, they both complement each other. E-learning institutes can aid and embed children as they require help whenever they need, and the traditional schooling will teach them how to live in a society and work with others, while honing their extracurricular skills too.

Running an e-learning organisation comes with its own set of challenges. Building a website, creating regular and quality content, gathering teachers and reaching out to children is all a ton of work.

Here in Bangladesh, it has become somewhat of a norm for children to spend approximately six hours at school, after which most of them have to seek out help, be it from tutors, coaching centers, or burying themselves in books and assignment.

Mahmudul Hasan, one of the two the directors at Tutors Inc says, “It has become culture here for children to ask for extra help. So getting used to the idea of being able to study by yourself only with the help of the internet may take some time.”

What concerns them most is how to gain the trust of the public, as Adib Ahnaf Aroz, Operations Manager at TutorsInc mentions, “The mentality of the society isn’t fully on board with the idea of learning over the internet.” Instilling trust in the society is something that will understandably take time. The initial response to any sort of change naturally invokes fear—a very human reaction. As Russel Ahmed, Founder and CEO of Champs21.com comments, “There is definitely a significant lack of awareness and fear of the unknown regarding the internet among teachers and parents.”

When it comes to society, Ishrat Tanzil, Education Coordinator at JAAGO Foundation, talked about how difficult it can get to convince those in the rural areas to send their children for higher studies. Mentalities vary place to place and person to person; some people choose the path of livelihood over proper education. “It can be quite the challenge introducing the idea and concept of education in such places at first. But it’s part of the job,” says Ishrat.

In between being able to gain the trust of the parents and students, there is a gaping hole in the industry for good teachers. What makes a teacher “good”? It is when their goal isn’t to make children memories just so they can jot things down on their exam papers, but those that focus on building the concepts for the children, teaching them in a way that’ll make sure they never forget it. An educated person not only knows the theories but knows how to apply them in real life. And a good teacher helps you do exactly that.

Apart from all that, turns out there’s a very basic problem these organisations have to face with services as simple as the internet. Since their operation is based on this, you can surely understand how scary it must be when the internet is not responding. Now that e-learning has come and nestled into our education to some extent, what could be the future of this much needed endeavour? Our country is headed towards more digitization so it makes sense to equip the children of today with the knowledge required to adapt to this new era. Russell Ahmed, Founder and CEO of Champs21.com, agreed to this when talking about starting Champs21.com, saying, “That verdict [of starting Champs21.com] was taken in order to prepare the future generation of our country to be competent in the global platform and help them cope with digitization.”

Technology never stops evolving and so it’s safe to say that the future of e-learning is vast and full of possibilities. What Bangladesh needs for now is the spread of e-learning to each corner of the country so that no child has to compromise on their education quality. The implementation of faster internet will also help things run smoother by making sure students receive real-time feedback from teachers. The more e-learning advances in the future, the more children will be benefited.

For, in the end, all that matters is the benefit of the children. We hurtle towards a better and brighter future if we can groom the kids to be prepared to handle anything and everything. Be it the technology or carrying themselves well in a society filled with all kinds of people, all can be accomplished with a good mix of our traditional schooling methods and the new e-learning institutes. Let’s commend all those that are working so hard at building a new and improved Bangladesh with a more than capable population.

3
মোবাইল ফোন বিস্ফোরণ ঠেকাতে কী করবেন
[/size]


সম্প্রতি ঢাকায় শাওমি ব্র্যান্ডের একটি স্মার্টফোন বিস্ফোরণের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা শাওমি বিবৃতি দিয়ে বলেছে, শাওমিতে গ্রাহকদের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়। গ্রাহকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে। স্মার্টফোন বিস্ফোরণের এমন ঘটনা একেবারে নতুন নয়।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে জানানো হয়, সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে স্যামসাংয়ের একটি ট্যাব বিস্ফোরণে অল্পের জন্য বেঁচে গেছে ১১ বছর বয়সী এক শিশু। বিস্ফোরণে ম্যাট্রেসে আগুন লেগে যায়। গত বছরে এ ধরনের এক ঘটনায় ক্রেডল ফান্ডের প্রধান নির্বাহী নাজরিন হাসান মারা যান। তাঁর ফোন চার্জে থাকা অবস্থায় বিস্ফোরণ ঘটে। তিনি ব্ল্যাকবেরি ও হুয়াওয়ের স্মার্টফোন ব্যবহার করতেন। দুটি ফোন তাঁর শোয়ার ঘরে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ছিল। স্মার্টফোন বিস্ফোরণ বা আগুন লাগার এ ধরনের ঝুঁকি এড়াতে নিজে থেকে সাবধান হতে হবে। জেনে নিন কিছু পরামর্শ:

১. প্রকৃত কেবল বা অ্যাডাপটার ছাড়া থার্ড পার্টির চার্জিং কেবল বা অ্যাডাপটার ব্যবহার করবেন না। আসল চার্জার নিরাপদ। স্মার্টফোন কেনার সময় প্রকৃত চার্জার বা অ্যাডাপ্টার দেওয়া হচ্ছে কি না, তা দেখে কিনবেন। ওয়ারেন্টির বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে নেবেন।

২. আপনার ডিভাইসের যদি ব্যাটারি পরিবর্তন করতে হয়, তবে যে প্রতিষ্ঠানের ডিভাইস, তাদের তৈরি ব্যাটারি কিনুন। তা না হলে ব্যাটারি কিছুদিন পরে ঠিকমতো কাজ করবে না।

৩. স্মার্টফোন, ট্যাবলেট বা লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারিযুক্ত ডিভাইসে অতিরিক্ত চার্জ দেবেন না। জার্মান ব্যাটারি প্রযুক্তি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ব্যাটারি ইঞ্জিনিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডমিনিক শুলঠে বলেন, যদি ফোনে শতভাগ চার্জ দেন এবং দীর্ঘক্ষণ শতভাগ চার্জ ধরে রাখেন, তা ব্যাটারির আয়ুর ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। স্মার্টফোনের ব্যাটারির চার্জ ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ থাকলে তার আয়ু থাকে বেশি দিন।

৪. দাহ্য পৃষ্ঠের আসবাব, বিছানা, কাগজের কাছাকাছি ডিভাইস রেখে চার্জ দেবেন না। অনেক সময় অতিরিক্ত গরম হয়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

৫. ঘুমানোর সময় বালিশের নিচে স্মার্টফোন রেখে চার্জ দেবেন না।

৬. সরাসরি সূর্যের আলোতে বেশিক্ষণ স্মার্টফোন বা ডিভাইস রাখবেন না।

৭. স্মার্টফোন বা ডিভাইস সারাতে অননুমোদিত কোনো দোকানে যাবেন না। এতে যন্ত্রাংশ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। অথরাইজড সেন্টার থেকে সেবা নিন।

৮. চার্জে থাকা অবস্থায় ডিভাইসের ওপর যাতে বাড়তি চাপ না পড়ে, সেদিকে খেয়াল রাখবেন।

৯. স্মার্টফোন বা ডিভাইস চার্জ দেওয়ার সময় পারলে এর কেস খুলে নিন।

১০. ফোন চার্জের সময় ইয়ারফোন ব্যবহার বা ফোনে কথা বলার সময় চার্জ দেবেন না।

১১. অনেকে সস্তা খোলা বাজারের পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহার করেন। পাওয়ার ব্যাংক মোবাইলের ব্যাটারি নষ্ট করে দিতে পারে। ঘটাতে পারে বিস্ফোরণ।

১২. মোবাইল ব্যবহার করতে করতে ব্যাটারি একটু ফুলে গেলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যাটারি চেঞ্জ করা দরকার।

4
উঁচু ভবন বা বাড়িতে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগিয়েই অনেকে ভাবেন, পুরো নিরাপত্তা দেওয়া হলো। কিন্তু অগ্নিকাণ্ডের মতো দুর্ঘটনা এড়ানো বা আগুন নেভানোর আধুনিক ব্যবস্থার দিকে নজর না দিলে ভয়াবহ ক্ষতি ও জীবনহানির মতো ঘটনা ঘটে যায়। আধুনিক প্রযুক্তির কল্যাণে দূরে থেকেও বাড়ি বা অফিসের অবস্থা জানা যায় এখন। কিছু স্মার্ট যন্ত্র অগ্নিকাণ্ড থেকে শুরু করে নানা দুর্ঘটনায় নিরাপত্তা দিতে পারে সহজেই। স্মার্ট হোম ধারণা এখন বিশ্বব্যাপীই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। স্মার্ট হোম তখনই হয়ে উঠবে যখন দালানে স্মার্ট যন্ত্র ব্যবহার করা হবে। যেগুলো ধোঁয়া, আগুন শনাক্ত করতে পারবে, নির্দিষ্ট জায়গা বা মানুষের কাছে তথ্য পাঠাতে পারবে এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আগুন নেভাতেও পারবে।


সুউচ্চ ভবন তৈরির নকশা অনুমোদন নেওয়ার অন্যতম পূর্বশর্ত হলো, সেখানে ভবন নিরাপত্তার সব নীতিমালা মেনে চলা হয়েছে তা নিশ্চিত করা। এমনকি নির্মাণের পরেও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর অনুমোদন সাপেক্ষে ভবনে গ্যাস, পানি ও বিদ্যুতের সংযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলো, এই সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠান থেকে অসৎ উপায়ে অনুমোদন নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। ফলে নির্ধারিত সুরক্ষা নীতিমালা না মেনেও নতুন ভবন তৈরি সম্ভব হচ্ছে। বলছিলেন শামস ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের প্রিন্সিপাল ডিরেক্টর মো. শামসুজ্জোহা। তাঁর প্রতিষ্ঠান এ দেশে ভবনে আগুন শনাক্তকরণ এবং সুরক্ষাব্যবস্থা সংবলিত ডিজাইন তৈরি ও নির্মাণের কাজ করে যাচ্ছে।
নীতিমালা মেনে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে কি না, তা আরও কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণের কোনো বিকল্প নেই। সামান্য উদাসীনতা বা অবহেলার কারণে বহু মানুষের জীবনহানিসহ অনেক ক্ষতি হতে পারে। অগ্নিকাণ্ডের মতো দুর্ঘটনায় সতর্কসংকেত পেতে বা স্বয়ংক্রিয়ভাবে আগুন নেভানোর জন্য এখন অনেক ধরনের স্মার্ট যন্ত্র বা প্রযুক্তিগত সমাধান পাওয়া যায়। এই যুগে এসব যন্ত্রের সহায়তা নেওয়া উচিত বলে জানালেন মো. শামসুজ্জোহা। তিনি বলেন, ‘বাড়ি বা ভবন নির্মাণের সময় এসব প্রযুক্তি ব্যবহারের কথা মাথায় রাখলে বাড়ি যেমন স্মার্ট হয়ে ওঠে, তেমনি নিরাপত্তাও বেড়ে যায়।’
শনাক্ত এবং আগুন থেকে সুরক্ষায় স্মার্ট যন্ত্র স্মার্ট স্মোক ডিটেকটর
ধোঁয়া শনাক্ত করার আধুনিক যন্ত্রগুলো বাড়ির কেন্দ্রীয় নিরাপত্তাব্যবস্থা বা স্মার্ট হোম হাবের সঙ্গে যুক্ত করা যায়। ফলে কোনো ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা চিহ্নিত করা গেলে সঙ্গে সঙ্গে তা মোবাইল ফোনের অ্যাপ ও এসএমএসের মাধ্যমে নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের সতর্ক হতে পরামর্শ দেয়। সাম্প্রতিক যন্ত্রগুলো কার্বন মনোক্সাইড গ্যাস শনাক্ত করতে পারে। ফলে অন্যান্য ধোঁয়ার সঙ্গে পার্থক্য বুঝতে সহজ হয়। কখনো আবার স্মার্ট হোমের সঙ্গে যুক্ত এই যন্ত্র ক্যামেরার মাধ্যমে ভিডিও ধারণ করা শুরু করতে পারে।
স্মার্ট ফায়ার ডিটেকটর
ঘরের তাপমাত্রা যখন নির্দিষ্ট মাত্রা অতিক্রম করে বা তাপমাত্রা বাড়ার হার অস্বাভাবিক হয়, তবে এই স্মার্ট ফায়ার ডিটেকটর সতর্কসংকেত বাজাতে থাকে। ক্ষেত্র বিশেষে এই যন্ত্রগুলো তাপমাত্রার সঙ্গে সঙ্গে ধোঁয়া ও বিভিন্ন ক্ষতিকর গ্যাসের উপস্থিতি চিহ্নিত করতে পারে।

এই স্মার্ট যন্ত্র কেবল যে আগুন শনাক্ত করছে এমনই নয়, বরং কিছু কিছু যন্ত্র আগুন নেভানোর ব্যবস্থাগুলো সক্রিয় করতে পারে। ভবনের বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সংযোগ কেন্দ্রীয়ভাবে ব্যবস্থাপনার সুযোগ থাকলে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে এমন দুর্যোগের সময় মূল সংযোগ বন্ধ করে আপৎকালীন বিকল্প ব্যবস্থা চালু করতে পারে।
স্মার্ট ব্যাটারি
আগে থেকে সক্রিয় স্মোক ডিটেকটরগুলো যদি কেন্দ্রীয় স্মার্ট হাবের সঙ্গে যুক্ত না থাকে, তবে স্মার্ট ব্যাটারি ব্যবহার করা যেতে পারে। ব্যাটারির সঙ্গে বাড়তি কিছু সরঞ্জাম যুক্ত থাকে, যা ওয়াই–ফাই বা মোবাইল ফোন নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন বার্তা বা নোটিফিকেশন পাঠাতে পারে।
স্মার্ট স্টোভটপ আগুন নির্বাপণ প্রযুক্তি
বাড়িতে আগুন লাগার একটা উৎস হলো রান্নাঘরের চুলা। স্মার্ট স্টোভটপের সঙ্গে যুক্ত মোশন সেন্সর সার্বক্ষণিক খেয়াল রাখে, চুলার সামনে কেউ আছে কি না। চুলার সামনে থেকে চলে যাওয়ার একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে এই যন্ত্র চুলা বন্ধ করতে শুরু করবে। একই সঙ্গে বিপদের সংকেত পাঠাবে নির্দিষ্ট যন্ত্রে।
স্মার্ট হাব
যে ধরনের স্মার্ট যন্ত্রই যুক্ত করা হোক না কেন, তা অন্য সব যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হবে। স্মার্ট হাবের সঙ্গে কেন্দ্রীয়ভাবে যুক্ত থাকলে সেখান থেকে মোবাইল অ্যাপ ও এসএমএসের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের অবহিত করা সম্ভব হবে।
আধুনিক যন্ত্রগুলো এখন গুগল হোম এবং আমাজন অ্যালেক্সার সঙ্গে কাজ করার উপযোগী করে তৈরি করা হয়। পাশাপাশি স্মার্ট হাব ব্যবস্থার অংশ হিসেবেও আগুন শনাক্ত করার যন্ত্র পাওয়া যায়। নেস্ট প্রোটেক্ট হলো এখন বাজারে থাকা সর্বোচ্চ মানের স্মোক ডিটেকটর। বিভিন্ন ধরনের সেন্সর সংযুক্ত এই যন্ত্র সব ধরনের আগুন ও ধোঁয়া চিহ্নিত করতে পারে।ফার্স্ট অ্যালার্ট হলো স্মার্ট স্মোক অ্যালার্মের মতো যন্ত্রও জনপ্রিয় ও কার্যকর। আর সাধারণ স্মোক ডিটেকটরগুলোর সঙ্গে স্মার্ট বৈশিষ্ট্য যুক্ত করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে লিও স্মাট অ্যালার্ট এবং রুস্ট স্মার্ট ব্যাটারি। এই যন্ত্রাংশগুলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে মোবাইলের অ্যাপে আগুনসংক্রান্ত সতর্ক বার্তা পাঠাতে এবং স্মার্ট হাবের সঙ্গে যুক্ত হতে পারে।
আগুন শনাক্তকরণ এবং সুরক্ষা ব্যবস্থা ভবনের অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি অংশ। কারণ, এটি ত্রুটিপূর্ণ হলে মানুষের জীবনহানির আশঙ্কা থাকে। পরিবার বা প্রতিষ্ঠানপ্রধানের এই বিষয়ে উদাসীনতা দেখানোর অর্থ হলো, তাঁরা আপনার জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে একেবারেই ভাবছেন না। তবে সচেতন হতে হবে প্রত্যেককেই। কোনো ক্ষতি হয়ে যাওয়ার পরে অন্য কাউকে দোষ দেওয়া থেকে আগেই সমাধানের জন্য উদ্যোগ নেওয়া জরুরি।


Source:- Daily Prothom Alo

Link:- https://www.prothomalo.com/technology/article/1586396/%E0%A6%86%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%A8-%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%9F-%E0%A6%B9%E0%A7%8B%E0%A6%AE

Pages: [1]