Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Mashud

Pages: 1 2 [3]
31
বই পড়তে কম-বেশি সবাই ভালোবাসে। আমরা অনেক ধরনের, অনেক আকারের বই পড়ি। কিন্তু বই কি কখনো মাইক্রোস্কোপ দিয়ে পড়ি?

না, বই এত ছোট হয় না। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, এত ছোট বইও কিন্তু রয়েছে। সেই বইটা পড়তে হয় স্ক্যানিং ইলেক্ট্রন মাইক্রোস্কোপ দিয়ে। গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড’স রেকর্ডসে স্থান করে নেওয়া পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট বইটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ মাত্র ১০০ মাইক্রোমিটার ও ৭০ মাইক্রোমিটার।

বইটি কিন্তু আবার ছোটদের একটি বইয়ের ক্ষুদ্রতম সংস্করণ। নাম ‘টিনি টেড ফ্রম টার্নিপ টাউন (Teeny Ted from Turnip Town)।’ বইয়ের লেখক ম্যালকম ডগলাস চ্যাপলিন।

এ বইটির লেখাগুলো ক্রিস্টালের সিলিকন পৃষ্ঠার উপরে আয়ন বিমের সাহায্যে খোদাই করা হয়েছে।

আর বইটির মূল্য কত জানো? ১৫ হাজার ডলার! যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১২ লাখ।

Ref: http://www.banglanews24.com/fullnews/bn/411937.html

32
বিড়াল, বাঘ, হরিণ, সিংহসহ বিভিন্ন প্রাণীর চোখ ‍অন্ধকারে জ্বলতে দেখা যায়। কিন্তু কেন জ্বলে জানো?

গবেষণায় জানা যায়, ‌যেসব প্রাণীর চোখ অন্ধকারে জ্বলে, তাদের অক্ষিপটের উপর লুমিনাস ট্যাপেটাম নামে একধরনের স্ফটিক উপাদান থাকে। এ থেকে আলো প্রতিম্বিত হয়ে জ্বলজ্বল করে।

রাতের ‍আলো যত কমই হোক না কেন এদের চোখের উপর পড়ে তা চকচক করে। আর অন্ধকারে এরা সব স্পষ্ট দেখতে পায় বলে এদের বলা হয় নিশাচর প্রাণী।

তবে সব প্রাণীর চোখ থেকে কিন্তু একই রঙের আলো বিচ্ছুরিত হয় না। দেখা যায়, যাদের চোখের অক্ষিপটে রক্ত বেশি থাকে তাদের চোখ ইটভাটার আগুনের মতো জ্বলে। আর যাদের কম তাদের চোখ জ্বলে অনেকটা হলদেটে আভায়।
Ref: http://www.banglanews24.com/fullnews/bn/412340.html

33
Science and Information / Natural fibre
« on: September 28, 2013, 11:38:03 AM »
natural fibre, any hairlike raw material directly obtainable from an animal, vegetable, or mineral source and convertible into nonwoven fabrics such as felt or paper or, after spinning into yarns, into woven cloth. A natural fibre may be further defined as an agglomeration of cells in which the diameter is negligible in comparison with the length. Although nature abounds in fibrous materials, especially cellulosic types such as cotton, wood, grains, and straw, only a small number can be used for textile products or other industrial purposes. Apart from economic considerations, the usefulness of a fibre for commercial purposes is determined by such properties as length, strength, pliability, elasticity, abrasion resistance, absorbency, and various surface properties. Most textile fibres are slender, flexible, and relatively strong. They are elastic in that they stretch when put under tension and then partially or completely return to their original length when the tension is removed.     
         History The use of natural fibres for textile materials began before recorded history. The oldest indication of fibre use is probably the discovery of flax and wool fabrics at excavation sites of the Swiss lake dwellers (7th and 6th centuries bc). Several vegetable fibres were also used by prehistoric peoples. Hemp, presumably the oldest cultivated fibre plant, originated in Southeast Asia, then spread to China, where reports of cultivation date to 4500 bc. The art of weaving and spinning linen was already well developed in Egypt by 3400 bc, indicating that flax was cultivated sometime before that date. Reports of the spinning of cotton in India date back to 3000 bc. The manufacture of silk and silk products originated in the highly developed Chinese culture; the invention and development of sericulture (cultivation of silkworms for raw-silk production) and of methods to spin silk date from 2640 bc.
    With improved transportation and communication, highly localized skills and arts connected with textile manufacture spread to other countries and were adapted to local needs and capabilities. New fibre plants were also discovered and their use explored. In the 18th and 19th centuries, the Industrial Revolution encouraged the further invention of machines for use in processing various natural fibres, resulting in a tremendous upsurge in fibre production. The introduction of regenerated cellulosic fibres (fibres formed of cellulose material that has been dissolved, purified, and extruded), such as rayon, followed by the invention of completely synthetic fibres, such as nylon, challenged the monopoly of natural fibres for textile and industrial use. A variety of synthetic fibres having specific desirable properties began to penetrate and dominate markets previously monopolized by natural fibres. Recognition of the competitive threat from synthetic fibres resulted in intensive research directed toward the breeding of new and better strains of natural-fibre sources with higher yields, improved production and processing methods, and modification of fibre yarn or fabric properties. The considerable improvements achieved have permitted increased total production, although natural fibres’ actual share of the market has decreased with the influx of the cheaper, synthetic fibres requiring fewer man-hours for production.
       Classification and properties Natural fibres can be classified according to their origin. The vegetable, or cellulose-base, class includes such important fibres as cotton, flax, and jute; the animal, or protein-base, fibres include wool, mohair, and silk; an important fibre in the mineral class is asbestos.
    The vegetable fibres can be divided into smaller groups, based on their origin within the plant. Cotton, kapok, and coir are examples of fibres originating as hairs borne on the seeds or inner walls of the fruit, where each fibre consists of a single, long, narrow cell. Flax, hemp, jute, and ramie are bast fibres, occurring in the inner bast tissue of certain plant stems and made up of overlapping cells. Abaca, henequen, and sisal are fibres occurring as part of the fibrovascular system of the leaves. Chemically, all vegetable fibres consist mainly of cellulose, although they also contain varying amounts of such substances as hemicellulose, lignin, pectins, and waxes that must be removed or reduced by processing. The animal fibres consist exclusively of proteins and, with the exception of silk, constitute the fur or hair that serves as the protective epidermal covering of animals. Silk filaments are extruded by the larvae of moths and are used to spin their cocoons.

    34
    Environmental Science and Disaster Management / Types of gear
    « on: June 06, 2013, 01:56:00 PM »
    1) Spur Gear-Parallel and co-planer shafts connected by gears are called spur gears. The arrangement is called spur gearing.

    Spur gears have straight teeth and are parallel to the axis of the wheel. Spur gears are the most common type of gears. The advantages of spur gears are their simplicity in design, economy of manufacture and maintenance, and absence of end thrust. They impose only radial loads on the bearings.

    Spur gears are known as slow speed gears. If noise is not a serious design problem, spur gears can be used at almost any speed.


    2)     Helical Gear-Helical gears have their teeth inclined to the axis of the shafts in the form of a helix, hence the name helical gears.

    These gears are usually thought of as high speed gears. Helical gears can take higher loads than similarly sized spur gears. The motion of helical gears is smoother and quieter than the motion of spur gears.

    Single helical gears impose both radial loads and thrust loads on their bearings and so require the use of thrust bearings. The angle of the helix on both the gear and the must be same in magnitude but opposite in direction, i.e., a right hand pinion meshes with a left hand gear.

    3)   Herringbone Gear - Herringbone gears resemble two helical gears that have been placed side by side. They are often referred to as "double helicals". In the double helical gears arrangement, the thrusts are counter-balanced. In such double helical gears there is no thrust loading on the bearings.

    4)  Bevel/Miter Gear-Intersecting but coplanar shafts connected by gears are called bevel gears. This arrangement is known as bevel gearing. Straight bevel gears can be used on shafts at any angle, but right angle is the most common. Bevel Gears have conical blanks. The teeth of straight bevel gears are tapered in both thickness and tooth height.

    Spiral Bevel gears: In these Spiral Bevel gears, the teeth are oblique. Spiral Bevel gears are quieter and can take up more load as compared to straight bevel gears.

    Zero Bevel gear: Zero Bevel gears are similar to straight bevel gears, but their teeth are curved lengthwise. These curved teeth of zero bevel gears are arranged in a manner that the effective spiral angle is zero.

    5)      Worm Gear- Worm gears are used to transmit power at 90° and where high reductions are required. The axes of worm gears shafts cross in space. The shafts of worm gears lie in parallel planes and may be skewed at any angle between zero and a right angle.In worm gears, one gear has screw threads. Due to this, worm gears are quiet, vibration free and give a smooth output.Worm gears and worm gear shafts are almost invariably at right angles.

    6)      Rack and Pinion- A rack is a toothed bar or rod that can be thought of as a sector gear with an infinitely large radius of curvature. Torque can be converted to linear force by meshing a rack with a pinion: the pinion turns; the rack moves in a straight line. Such a mechanism is used in automobiles to convert the rotation of the steering wheel into the left-to-right motion of the tie rod(s). Racks also feature in the theory of gear geometry, where, for instance, the tooth shape of an interchangeable set of gears may be specified for the rack (infinite radius), and the tooth shapes for gears of particular actual radii then derived from that. The rack and pinion gear type is employed in a rack railway.

    7)      Internal & External Gear- An external gear is one with the teeth formed on the outer surface of a cylinder or cone. Conversely, an internal gear is one with the teeth formed on the inner surface of a cylinder or cone. For bevel gears, an internal gear is one with the pitch angle exceeding 90 degrees. Internal gears do not cause direction reversal.

    8)      Face Gears- Face gears transmit power at (usually) right angles in a circular motion. Face gears are not very common in industrial application.

    9)      Sprockets-Sprockets are used to run chains or belts. They are typically used in conveyor systems.

    Gears may also be classified according to the position of axis of shaft:
    a.Parallel
      1.Spur Gear
      2.Helical Gear
      3.Rack and Pinion
    b. Intersecting
      Bevel Gear
    c. Non-intersecting and Non-parallel
      worm and worm gears

    35


    In ring spinning process, there are some critical success factors which directly effect on yarn quality and profitability of the plant.

      Strength of Yarn

        If there is need to reduce the defects and improve quality of yarn, strength of yarn is so important that without it we can’t take best results in the next process. Strength of yarn depends on twist of yarn, as the twist increases the strength is also increases up to a certain limit.

        CV of Yarn

        From customer’s point of view, CV of count is very important and it’s difficult to achieve and maintain in the ring spinning process. CV of yarn is the variation of different parameters like,strength, count etc.


    36


    Ring spinning process is a very critical process in the whole plant and it has also the direct relation to production of plant. It’s difficult to manage it and lot of problems occurs during process.Following are some production, mechanical and electric problems here.

        Most of operators don’t know about how to handle the machine.
        Due to lack of training of employees, they can create problems when they work in the department like problems of material handling, wrong traveler and bobbin color.
        Ends down is the major problems in ring machine and it cause an efficiency and production loss.
        Due to lack of training of maintenance staff, mechanical fault is creating a problem and loss of
    mechanical parts, efficiency and production of plant.
        Improper maintenance is also creating problems related to maintenance and electric fault during running of machine.
        Electric problems are also occurred due to lack of electric staff and they are unable to take corrective and preventive action against any fault.
        Some faults are occurred due to manufacturer of machine like software problem,communication problem and load capacity problems.

             
     

    37
    Science and Information / Visa and Types
    « on: August 01, 2012, 02:21:19 PM »
     Certificate issued or a stamp marked (on the applicant's passport) by the immigration authorities of a country to indicate that the applicant's credentials have been verified and he or she has been granted permission to enter the country for a temporary stay within a specified period. This permission, however, is provisional and subject to the approval of the immigration officer at the entry point. The common types of visas include: (1) Single entry visa: valid only for one visit. (2) Multiple entry visa: allows any number of visits within its validity period. (3) Business visa: for a short visit to conduct discussions, negotiations, and/or presentations, but not to take up employment. (4) Tourist visa: allows freedom to move around the country and briefly cross its frontiers to another country and return. (5) Residence visa: allows an extended stay but does not grant permission to take up employment. (6) Work visa: gives the permission to stay and take up employment, for a specific job and only for a limited period. Called also work permit. (7) Electronic visa: permission recorded in a computer instead of being issued as a certificate or stamp.
     

    38
    বেইজিং থেকে খানিকটা দূরের একটি স্থান হুট করেই গবেষকদের নজর কাড়ল। ঘটনাটি ছিল ১৯৫৮ সালের। চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের ৫০ কিলোমিটার দূরের স্থানটিকে প্রত্নতাত্তি্বকভাবে যথেষ্ট সম্ভাবনাপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করলেন গবেষকরা। বেইজিং থেকে উত্তর দিকে বিখ্যাত চীনের প্রাচীরে যাওয়ার পথে এই পাহাড়ি স্থানটি পড়ে। সেখানে ছিল অনেক ঢিবি। এতদিন সেখানে কোনো খননকাজ চালানো হয়নি। মানুষের কুসংস্কার ছিল ওই ঢিবিগুলোর সঙ্গে কোনো ভৌতিক ঘটনা জড়িত আছে। এগুলো খুঁড়লে তাদের ওপর কোনো অকল্যাণ নেমে আসবে। কিন্তু এক সময় গবেষকদের চেষ্টায় সেখানে খননকাজ শুরু হলে এক রহস্যময় অধ্যায় উন্মোচিত হলো। আবিষ্কৃত হলো মিং রাজাদের সমাধিক্ষেত্র। প্রাচীন মিসরের মতো চীনেও রাজাদের বাসস্থান থেকে সমাধিক্ষেত্র থাকত লোকচক্ষুর আড়ালে। ১৪০৯ খ্রিস্টাব্দে শুরু হয়েছিল ওই বিশাল সমাধিক্ষেত্র নির্মাণ কাজ। যেখানে শায়িত ছিল ১৩ জন মিং সম্রাট। ১৩৬৮ সালে মোঙ্গলদের হাত থেকে মিংরা দেশের অধিকার কেড়ে নেয়। চীনের ইতিহাসে এক উল্লেখযোগ্য স্থানজুড়ে রয়েছে মিং সাম্রাজ্য।

    মিং রাজবংশের সমাধি বেইজিং শহরের কেন্দ্র থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে ইয়ানশান পর্বতমালার অংশ বিশেষ অঞ্চলে নির্মিত। সমাধির পূর্ব, পশ্চিম ও উত্তর দিকে পাহাড় এবং এর মধ্য দিয়ে চলে গেছে একটি আঁকাবাঁকা পথ। এ পথটি বেইজিংয়ে এসে পেঁৗছেছে। শাং লিং সমাধি হচ্ছে ১৩টি সমাধির মধ্যে প্রধান। অন্য ১২টি সমাধি ছাংলিংয়ের পূর্ব ও পশ্চিম পাশে অবস্থিত।

    চীনা গবেষক লি মেই উল্লেখ করেছেন, ছাংলিং সমাধিতে সমাহিত রয়েছেন চু তি। তিনি ছিলেন মিং রাজবংশের সমাধি নির্মাণকারী প্রথম রাজা। রাজা চু তি ছিলেন একজন প্রতিভাবান ও দূরদর্শী মানুষ। তিনিই বেইজিংকে রাজধানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছিলেন। এর পেছনে কারণ ছিল এর ভৌগোলিক অবস্থানের জন্য। আগ্রাসকদের হাত থেকে নিজেদের রক্ষা করা। এর পাশাপাশি তিনি বেইজিং শহর, নিষিদ্ধ নগর (ফরবিডেন সিটি) এবং মহাপ্রাচীরও নির্মাণ করেছেন। চু তি'র নির্মাণ করা ছাংলিং হচ্ছে মিং রাজবংশের প্রথম সমাধিক্ষেত্র। পাহাড়ের অভ্যন্তরে সমাধি এবং উপরিভাগের স্থাপত্যকলা একে পূর্ণাঙ্গ সমাধিতে পরিণত করেছে।

    ছাংলিং সমাধির স্থাপত্য নিষিদ্ধ নগরের গঠন কাঠামোর আদলে তৈরি লাল দেয়াল ও হলুদ টালি ও অসমতল প্রাসাদে সম্রাট চু তি'র অপূর্ব মর্যাদা ফুটে উঠেছে। সমাধিক্ষেত্রের প্রধান স্থাপত্য হচ্ছে লিং এর প্রাসাদ। প্রতি বছর রাজকীয় ব্যক্তিবর্গ এ স্থানে এসে পূর্ব-পুরুষদের প্রতি তাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতেন। প্রাসাদ নির্মাণের উপকরণ হচ্ছে নানমু। প্রাসাদটিতে ৬০টি ১২ মিটার উঁচু ও এক মিটার ব্যাস সম্পন্ন নানমু রয়েছে। নানমু হচ্ছে এক ধরনের মূল্যবান কাঠের খুঁটি। তা খুব শক্ত ও সহজে নষ্ট হয় না। এ কাঠে এক ধরনের বিশেষ সুগন্ধিও রয়েছে। গাইড লি মেই জানান, প্রাচীনকালের পরিবহনের কাজ খুব সহজ ছিল না। সুতরাং এসব নানমুগুলো কেটে ডিজাইন করে নিয়ে আসা ছিল অনেক কঠিন কাজ। এর বর্ণণা দিতে গিয়ে মেই বলেছেন-

    'এসব কাঠ দক্ষিণ-পশ্চিম চীনের ইউনান ও সিচুয়ান প্রদেশের বন থেকে সংগ্রহ করা হয়। কারণ কাঠগুলো খুব বড়, প্রথমে মানুষ গাছ কেটে বনে রেখে দিতো। গ্রীষ্মকালে যখন বন্যা হতো তখন বন্যার পানিতে ভাসিয়ে বন থেকে নদীপথে গন্তব্য স্থলে নিয়ে যাওয়া হতো এসব নানমু। নদীপথে নিয়ে যাওয়ার সময় কাঠগুলোকে বেঁধে ভেলার মতো করে নিয়ে আসত বেইজিংয়ে। পরে শীতকালে যখন বরফ পড়তো তখন হাজার হাজার শ্রমিক সমতল বরফের ওপর দিয়ে টেনে ধীরে ধীরে কাঠগুলো বেইজিংয়ের সমাধিস্থলে নিয়ে যেত। সুতরাং এসব কাঠ টেনে নিয়ে যেতে প্রায় ৩ থেকে ৪ বছর লাগত এবং এতে ২০ হাজার লোককে দিন-রাত কাজ করতে হতো।'

    লিং প্রসাদের পর চার-দিক ঘিরে আর একটি ঐতিহ্যিক স্থাপত্য বিশিষ্ট একটি উঁচু মিং স্থাপত্য রয়েছে। তা হচ্ছে মিং রাজবংশের রাজ প্রাসাদের প্রতিনিধিত্বমূলক স্থাপত্য। ভেতরে রয়েছে একজন রাজার সমাধি। পাথরে উৎসর্গের কথা উৎকীর্ণ।

    39
    মহাশূন্যের দীর্ঘ যাত্রাপথে নভোচারীদের জন্য খাবারের বন্দোবস্ত এবার চাষাবাদের মাধ্যমেই করা যাবে। গ্রিনহাউস পদ্ধতিতে নভোযানেই বা স্পেস স্টেশনেই জন্মানো যাবে লেটুস পাতা, টমেটো, মুলা বা বিভিন্ন সালাদ উপকরণ।

    একটি সংবাদমাধ্যমের বরাতে জানা গেছে, মহাশূন্যে চাষাবাদের জন্য প্রয়োজন পড়বে স্পেস গ্রিনহাউস প্রযুক্তি। আর এমনই একটি প্রযুক্তির প্রটোটাইপ পরীক্ষা করেছে নাসা। যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনায় পরীক্ষা করা এই পদ্ধতিটি 'ডেজার্ট আরএটিস' নামে পরিচিত।

    জানা গেছে, কেনেডি স্পেস সেন্টারের গবেষক দল ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের জন্য এই পদ্ধতি চালু করবে। আর এই ইউনিটটি তৈরি করবে উইসকনসিনভিত্তিক অরবিটাল টেকনোলজিস করপোরেশন।

    জানা গেছে, এই পদ্ধতিতে চাষাবাদ করতে যে ইউনিটটি তৈরি হবে সেটি ওজনে হালকা, যথেষ্ট শক্তি সাশ্রয়ী কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণ খরচ খুবই কম। এতে কেবল ১০০ ওয়াট শক্তি ব্যয় হতে পারে।

    গবেষকদের বরাতে জানা গেছে, এই পদ্ধতিতে চাষাবাদের জন্য প্রয়োজনীয় আলোর উৎস হবে এলইডি এর লাল, নীল এবং সবুজ আলোর সমন্বয়। আর যে মাধ্যমে এটি জন্মানো হবে তাতেই বীজ এবং সার দেওয়া থাকবে। আর পানির প্রবাহও এই প্রক্রিয়ায় চলতে থাকবে।

    সংবাদমাধ্যমটির বরাতে জানা গেছে, মহাশূন্যে চাষাবাদের এই পদ্ধতিটি এখনো প্রক্রিয়াধীন পর্যায়ে আছে। আর এটি বাস্তবে সফল করতে এক দশক সময় লেগে যাবে।

    40
    Science and Information / উপকারী ব্যাঙ
    « on: June 25, 2012, 03:46:34 PM »
    ব্যাঙকে সাধারণত নিরীহ উভচর প্রাণী হিসেবে বিবেচনা করা হলেও এসব নিরীহ ব্যাঙের মাঝে এমন কিছু প্রজাতির ব্যাঙ আছে যেগুলো অত্যন্ত ভয়ঙ্কর ও বিষাক্ত। এসব প্রজাতির ব্যাঙের কাছ থেকে সব সময়ই সাবধান থাকে অন্যান্য পশু-পাখি। এসব বিষাক্ত ব্যাঙের শরীর থেকে এক ধরনের উজ্জ্বল আলো বের হয়, যা নিয়ন বাতির মতো। সেই আলো দেখেই সতর্ক হয়ে যায় অন্যান্য জীবজন্তু।

    এসব বিষাক্ত ব্যাঙের মধ্যে পশ্চিম কলম্বিয়ায় নিম্নভূমিতে দেখতে পাওয়া যায় হলুদ রঙের ফিলোবেটস টেরিবিলস। এসব ব্যাঙের কোনো কোনোটির আকার বিশাল আবার কোনোটি দু-থেকে তিন ইঞ্চি। এরা মাঝে মাঝে বিষাক্ত বিষ ছুঁড়ে বিশাল আকৃতির প্রাণীদের হত্যা করে। এই প্রজাতির ব্যাঙের বিষ যেকোনো মরফিন হতে প্রায় ২০০ গুণ বেশি শক্তিশালী।

    ইকুয়েডরের জঙ্গলে দেখা যায় বিষাক্ত ব্যাঙের অপর একটি প্রজাতি। এদের নাম_ এপি পেজেবেটস ট্রাইকালার। এসব ব্যাঙের সারা গায়ে আঁকা থাকে বিচিত্র ধরনের ও রঙের নকশা। এসব ব্যাঙের বিষ শিকারিরা শিকারে ব্যবহার করে। এদের শরীর থেকে বিষ সংগ্রহ করে তীরের ফলায় মাখিয়ে শিকারিরা খরগোশ, কাঠবিড়ালী প্রজাতির খুদে জীবজন্তু শিকার করে। এছাড়াও এই ব্যাঙের বিষ জীবজন্তুকে অচেতন করতেও ব্যবহার করা হয়।

    বিষাক্ত ব্যাঙের অন্য একটি প্রজাতি ড্রেনডাবেটস আরাটাস। এদের দেখা যায় মধ্য ও উত্তর-দক্ষিণ আমেরিকায়। এই ব্যাঙের বিষ দ্বারা বর্তমানে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ওষুধ তৈরি করা হচ্ছে, যা দিয়ে অনেক জটিল রোগ নিরাময় করা সম্ভব। এমনিভাবে পৃথিবীর নানা জায়গায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে অসংখ্য বিষাক্ত প্রজাতির ব্যাঙ, যারা নানাভাবে মানব জাতির উপকার করছে।

    41
    ১৯২১ সাল। একদিন ইংল্যান্ডের সেন্ট মেরিজ মেডিকেল স্কুলের ল্যাবরেটরিতে কাজ করেছিলেন আলেকজান্ডার ফ্লেমিং। কয়েকদিন ধরে তিনি সর্দি-কাশিতে ভুগছিলেন। তিনি তখন প্লেটে জীবাণু কালচার নিয়ে কাজ করছিলেন। হঠাৎ হাঁচি এলো। তিনি নিজেকে সামলাতে পারলেন না। প্লেটটা সরাবার আগেই নাক থেকে কিছুটা সর্দি প্লেটের ওপর পড়ে গেল। পুরো জিনিসটা নষ্ট হয়ে গেল দেখে প্লেটটি এক পাশে সরিয়ে রেখে নতুন আরেকটি প্লেট নিয়ে কাজ শুরু করলেন। কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরে গেলেন।

    পরদিন ল্যাবরেটরিতে ঢুকে টেবিলের এক পাশে সরিয়ে রাখা প্লেটটার দিকে নজর পড়ল ভাবলেন প্লেটটি ধুয়ে কাজ করবেন; কিন্তু প্লেটটি তুলে ধরে চমকে উঠলেন। দেখলেন, গতকালের জীবাণুগুলো আর নেই। দেহ নির্গত এই প্রতিষেধক উপাদানটির নাম দিলেন লাইসোজাইম। দীর্ঘ আট বছর পর হঠাৎ একদিন কিছুটা আকস্মিকভাবেই ঝড়ো বাতাসে খোলা জানালা দিয়ে ল্যাবরেটরির বাগান থেকে কিছু পাতা উড়ে এসে পড়ল জীবাণুভর্তি প্লেটের উপর। কিছুক্ষণ পরে কাজ করার জন্য প্লেটগুলো টেনে নিয়ে দেখলেন জীবাণুর কালচারের মধ্যে স্পষ্ট পরিবর্তন ঘটেছে। ছত্রাকগুলোর বৈজ্ঞানিক নাম ছিল পেনিসিলিয়াম নোটেটাইম। তাই এর নাম দিলেন পেনিসিলিন। এভাবে আলেকজান্ডার ফ্লেমিং পেনিসিলিন আবিষ্কার করেন।

    রসায়ন সম্বন্ধে জ্ঞান না থাকার কারণে পেনিসিলিন আবিষ্কার করলেও ওষুধ কিভাবে প্রস্তুত করা যায় তা তিনি বুঝে উঠতে পারেননি। এরপর ডা. ফ্লোরি ও ড. চেইন পেনিসিলিনকে ওষুধে রূপান্তর করেন।

    42
    সকাল-সন্ধ্যা অফিসে যাওয়ার তাড়াহুড়ায় চাবি ঘরে ফেলে দরজা বন্ধ করার ঘটনা প্রায়ই ঘটে। তারপর হাজার টানাটানি করেও আর দরজা খোলে না, কোনো জানালাও খোলা নেই যে, তার মধ্য দিয়ে ঢোকার চেষ্টা করবেন। একটু অসতর্ক থাকলে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। চাবিওয়ালা খুঁজে আনতে আনতে আরও ঘণ্টাখানেক অপেক্ষা করতে হয়। বিরক্তিতে নিজের ওপর রাগ হওয়াটা একেবারেই স্বাভাবিক। নিজেকে তখন খুব দায়িত্ব-জ্ঞানহীন মনে হতে পারে। এ রকম ঘটনা মনে হয় আমাদের নিজেদের জীবনে প্রায়ই ঘটে। তবে আগে থেকে যদি একটু সাবধান এবং সতর্ক হন তবে এ রকম ঘটনা এড়ানো সম্ভব। * সব সময় চাবির একটা ডুপ্লিকেট সেট বানিয়ে রাখবেন। ডুপ্লিকেট চাবি সব সময় আপনার সঙ্গে রাখুন। যে পার্স বা ব্যাগ আপনি সব সময় সঙ্গে রাখেন, সেখানে এ চাবি রাখুন। খুব প্রয়োজন না হলে, চাবি কখনোই ব্যাগ থেকে বের করবেন না। বাড়ির অন্য সদস্যদেরও এক সেট করে চাবি রাখতে বলুন। * বাড়ির চাবি সম্পূর্ণ আলাদা কি-রিংয়ে রাখুন। আলমারি বা অন্য কোনো চাবির সঙ্গে রাখবেন না, তাহলে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। * চাবি হারিয়ে গেলে বাড়ির অন্য সদস্যদের ফোন করে জানান। হতে পারে তাদের কাছে কোনো চাবি থাকতে পারে বা তারা কোনো উপায় করে দিতে পারে। আপনার স্বামী বা অন্য কাউকে বলুন চাবিওয়ালা সঙ্গে করে নিয়ে আসতে, তবে ততক্ষণ আপনাকে অপেক্ষা করতেই হবে!

    43
    Industrial Attachment: Spinning process
    Fiber
    •   Fibre purchasing system
    •   Types of fibre used in spinning mill
    •   Mostly used fibre in spg mill( if possible collect percentage)
    •   fibre price (according to fibre types)
    •   Last two years fibre price
    •   Per consignment no of bales
    •   per bale wt
    •   Fibre storage capacity according to mill
    •   How many no. of bales are stored all time in the mill.
    •   What process is done when bale is kept in the store?
    •   Spinning limit
    Process:
    In Blow roomline_
    •   Atmospheric condition of B/R
    •   Effect of RH% on product quality
    •   Working procedure of all machines in B/R line( when maintenance is done see all the  machine parts and their function)
    •   Production capacity of B/R line
    •   Production calculation of B/R line
    •   No. of m/c needed in B/R line
    •   No. of bales per lay down
    •   Production capacity of individual machine.
    •   How to use monitor for individual machine
    •   Lay out of B/R line.
    •   Model no. of machine
    •   Individual m/c study for product quality.
    •   Faults of B/R line
    •   Recent developments of B/R line
    •   Wastage of B/R & their names.
    •   Function of chute feed system
    •   Function of different sensor
    •   Bale management technique for knit and woven and their importance.
    •   Problems of b/r machinery.

    •   Carding:

    •   Model no. of machine
    •   Production calculation
    •   Production capacity
    •   Speed of feed r/r, T-in, cyl, doffer, etc
    •   Gearing calculation
    •   Function of different sensor
    •   Recent developments
    •   Measurement of NRE%
    •   Different gauge setting.
    •   Problems created into the carding m/c
    •   Wastage of carding & their names.
    •   Count calculation of sliver.
    Drawframe & comber
    •   Same as carding
    •   Doubling system and importance.
    •   Can coiling system
    •   Process sequence
    •   Can color (carding to simplex)
    •   Autolevelling

    Simplex & Ring frame
    •   Model no. of machine
    •   Production calculation
    •   Production capacity
    •   Recent developments
    •   Bobbin color
    •   Wastage
    •   Gearing calculation
    •   Automation
    •   Process control
    •   RH%
    •   End breakage rate calculation
    •   
    Autoconer:
    •   Function
    •   Monitor setting
    •   Working principle(capacitance & optical)
    •   Machine parts with their function
    •   Splicing system & strength of splicing place compared to main yarn
    •   Package weight
    •   Cone color
    •   Wastage
    Finishing sector:
    •   Supervising & checking all the product
    •   Instrument used
    General instruction:
    •   Lay out plan
    •   Spin plan
    •   Machine erection
    •   Floor height
    •   Man power calculation
    •   Cost calculation

    Quality:
    •   Principle of all machines
    •   Meaning of all sheets.
    •   Decision making from test result

    Mechanical & Electrical
    •   M. schedule
    •   If don’t follow then what effect
    •   Power consumption
    •   Power supply system
    •   Function & working principle--& capacity calculation
    •   Gas generator
    •   Air compressor
    •   Dryer
    •   Humidification plant
    •   Boiler
    •   Chiller
    •   Motor
    •   Pump
    •   Fibre deposit plant (FDP)
    •   etc






       

    44
    While you are Student / Some important unit system
    « on: June 18, 2012, 03:33:46 PM »
    Count:Denier, Tex, Decitex(dtex), Nm(N), Ne(S), Micronaire value, Linen(wet or dry spun), Worsted Spun, Woolen spun(Philadelphia system), Woolen spun(West of England), Woolen spun(Yorkshire), Woolen spun(Galashiels cut), Woolen spun(Hawick), Woolen spun(American Run), Asbestos(English), Asbestos(American), Typp, Woolen spun(American Cut), Glass (UK & USA), Cotton bump yarn, Woollen spun(Irish), Woollen spun(Alloa) and Woollen spun(Dewsbury).
    The yarn count number indicates the length of yarn in relation to the weight,it expresses the thickness of the yarn, and three systems of yarn count are currently in use: the fixed length, the fixed weight and the Tex systems.

    ** mostly we are used in denier, tex, Ne, mic value.**

    Pages: 1 2 [3]