Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - sisyphus

Pages: 1 ... 23 24 [25]
362
পুরো বিশ্ব যখন জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে আছে, তখন গ্রিন টেকনোলজি বা পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির বদলে কার্বন নিঃস্বরণ বাড়িয়ে দেয়াটা মোটেই কাজের কিছুনা।

আমার মতে ফুল ডেফিনেশন টিভিই যথেষ্ট  8)


____________________

আল্ট্রা হাই-ডেফিনেশন (ইউএইচডি) টিভি নিয়ে চলছে নানা আলোচনা, যা ৪কে টিভি হিসেবেও পরিচিত। প্রচলিত হাই-ডেফিনেশন টিভির তুলনায় চারগুণ উন্নত রেজুলিউশন পাওয়া যায় এতে। কিছু বেশি পেতে গেলে কিছু তো বেশি দিতেই হবে, এক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম নয়। এক্ষেত্রে ব্যবহারকারীকে দিতে হচ্ছে বাড়তি বিদ্যুৎ বিল, আর এই বাড়তি বিলের পরিমাণ সাধারণ টিভির তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি বলে জানিয়েছে পরিবেশবিষয়ক নিউ ইয়র্কভিত্তিক সংস্থা ন্যাচারাল রিসোর্স ডিফেন্স কাউন্সিল (এনআরডিসি)।



৪৯ থেকে ৫৫ ইঞ্চির মধ্যে ২০টি এলসিডি টিভি, একটি ওএলইডি টিভি নিয়ে এই একটি গবেষণা চালায় এনআরডিসি আর তাদের সহায়তাকারীরা। এজন্য নেওয়া হয় এলজি, প্যানাসনিক, স্যামসাং, শার্প আর সনির ২০১৪ থেকে এখন পর্যন্ত বের করা টিভিগুলো। গবেষণার প্রতিবেদনে সংস্থাটি জানায়, “বর্তমান সময়ে যদি সব মার্কিন অধিবাসী তাদের ৩৬ ইঞ্চির প্রচলিত টিভির জায়গায় ৪কে টিভি ব্যবহার শুরু করেন তবে দেশের মোট বিদ্যুৎ বিল ১শ’ কোটি ডলার বেড়ে যাবে।” আর এর ফলে এক বছর পর দেশটিতে ঘন্টায় ৮শ’ কোটি কিলোওয়াট বাড়তি বিদ্যুৎ ব্যবহৃত হবে। পরিবেশগত দিক থেকে চিন্তা করলে, এর ফলে এক বছরে ৪৫ লাখ মেট্রিক টন বাড়তি কার্বন নিঃসরণ হবে বলে জানান তারা।

টিভি পর্দার আকার নয়, এই টিভির ব্যাকলাইটকেই বাড়তি বিদ্যুৎ প্রয়োজনের কারণ হিসেবে জানানো হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

বিদ্যুৎ নিয়ে আরেকটি উদ্বেগের বিষয় হিসেবে হাই ডাইনামিক রেইঞ্জ (এইচডিআর) এনকোডিং- এর সঙ্গে ভিডিও দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন। এই ফিচারে প্রতিবার ৪৭ শতাংশ বাড়তি বিদ্যুৎ শক্তি ব্যবহৃত হয়।

নতুন ইউএইচডি টিভিগুলোর ওয়াই-ফাই আর দ্রুত রিবুট পদ্ধতিতেও অতিরিক্ত বিদ্যুৎ দরকার হয় বলে ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়।

আশার কথা হচ্ছে, এই মূহুর্তে কম বিদ্যুৎ খরচে এমন প্রযুক্তি ব্যবহারের সুযোগ চলে এসেছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। এরআরডিসি জানিয়েছে, “বর্তমানে বাজারের কিছু ৪কে টিভি মডেল একই আকারের এইচডি টিভির সমান বা কিছু বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করে।” সবচেয়ে কম বিদ্যুৎ খরচকারী ৫৫ ইঞ্চি ৪কে টিভির তুলনায় একই আকারের সবচেয়ে বেশি খরচকারী টিভির ব্যবহারের দশ বছরে ২শ’ ৪৬ ডলার বেশি বিদ্যুৎ বিল আসবে।

বিদ্যুৎ বিল কমাতে ৪কে টিভি ব্যবহারকারীদের অটোমেটিক ব্রাইটনেস কন্ট্রোল চালু, ‘কুইক স্টার্ট বুটিং অপশন বন্ধ আর ভিডিও গেইম কনসোল ব্যবহার করে মুভি স্ট্রিমিং থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে এনআরডিসি।

তথ্যসূত্রঃ বিডিনিউজ২৪

363
প্রায় সাড়ে তিনবছর ধরে কিন্ডেল ব্যবহার করছি।  এটা নিয়ে একটা আর্টিকেল লিখেছিলাম বেশ কয়েকবছর আগে, যা এখনও কাজে আসতে পারে মনে করছি। পড়ে দেখতে পারেন কাজে আসে কিনাঃ


“কাগজে খবর পড়ছেন মানে আপনিও গাছ কাটছেন”- বাংলাদেশের প্রথম সারির একটি অনলাইন নিউজসাইটের বিজ্ঞাপণটি দেখে থমকে দাঁড়িয়েছেন অনেকেই। তথ্যের আদান-প্রদানই যদি হয় মূল লক্ষ্য তাহলে সেটা শক্ত কাগজেই হোক কিংবা ইলেক্ট্রনিক্যাল যন্ত্রেই হোক; তাতে কিইবা আসে যায়? ক্ষুদ্র জ্ঞানে বুঝি- আসে যায়! কাগজ তৈরীর কাঁচামাল জোগান দিতে দিতে দেশের বনভূমি সাফ করে দেয়াটা মোটেই কাজের কথা না। খুলনা নিউজপ্রিন্টের কাঁচামাল কেওড়া গাছের যোগান দিতে গিয়ে বর্তমান সুন্দরবনের কেওড়াগাছশূন্যতাই তার বড় প্রমাণ। মাসখানেক আগে বইমেলায় গিয়ে দেখি এলাহী কারবারঃ মাত্র ১০০পাতার পাতলা একেকটা বইয়ের দাম ২০০টাকা! কাগজের এই অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি সমাধান কি? অদূর ভবিষ্যতে “কাগজশূন্য পৃথিবী”র স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেয়া হয়ত সম্ভব হবে না কিন্তু কাগজের বিকল্প খুঁজে নিয়ে কাগজের উপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে নিয়ে আসার কাজটা খুবই সম্ভব। আর হালের “ইবুক রিডারগুলো” ঠিক এই কাজটাই করে যাচ্ছে, ঘটিয়ে যাচ্ছে নিরব বিপ্লব। জনপ্রিয় ইবুক রিডার কিন্ডেল নিয়ে এই লেখা-

কিন্ডেলের বিশেষত্বঃ
ডিসপ্লের জন্য প্রথাগত এলসিডির পরিবর্তে কিন্ডেলে ব্যবহার করা হয়েছে “Most Advanced E Ink Display” যা সত্যিকার কাগুজে বই পড়ার স্বাদ যোগায়। এলসিডির মত ব্যাকলাইটের ব্যবহার না করার কারনে সূর্যের আলোতে বসেও আরামে পড়া চালিয়ে যাওয়া যায় ক্রিনে রিফ্লেকশনের ঝামেলা ছাড়াই। ব্যাকলাইট না থাকায় দীর্ঘ সময় পড়াশুনা করলেও চোখের উপর কোন চাপ পড়েনা।



ই-ইঙ্ক প্রযুক্তির আরও একটা বড় সুবিধা হচ্ছে একটি লেখা একবার ক্রিনে দেখানোর পর সেটি বদলানোর আগে পর্যন্ত অতিরিক্ত কোন বিদ্যুতের দরকার হয়না। তাই ব্যাটারী ব্যাকআপ লাইফও অসাধারণঃ একবার ফুলচার্জে অনায়াসে চলে যাবে পুরো ১-২ মাস! আর চার্জিং এর জন্য আলাদা অ্যাডাপটার কেনার দরকার নেই, ইউএসবি কেবল দিয়ে পিসি/ল্যাপটপে লাগিয়ে রাখলেই চার্জ নিয়ে নেবে।

কিন্ডেলের জন্য বই পাব কই?
ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডিট কার্ড থাকলে কিন্ডেল স্টোরের ১মিলিয়নেরও বেশী বইয়ের ভান্ডার থেকে কয়েক সেকেন্ডে কিনে নিতে পারবেন আপনার পছন্দের ইবুকটি। ফ্রিতে চাইলে গুগলে “Free Kindle Ebooks” লিখে সার্চ দিলেই কয়েকশো বই পাওয়া যাবে।

ফাইল ফর্মেট সাপোর্টঃ
কিন্ডেলের ইবুকগুলোর নিজস্ব ফর্মেট .mobi । পাশাপাশি নোটপ্যাড ডকুমেন্ট (TXT), PDF-সহ HTML, DOC, DOCX এমনকি ছবির ফর্মেট JPEG, GIF, PNG, BMP- ফাইলগুলোও কিন্ডেলে অনায়াসে চলে। এর বাইরে আনসাপোর্টেড ফাইল কনভার্টের জন্য ফ্রি কনভার্টর থাকতে আর চিন্তা কি?



তো বইয়ের পোকারা, শুরু হয়ে যাক?

মূললেখা (পরিমার্জিত ও সংশোধিত) -  http://tech.priyo.com/blog/2012/04/08/3439.html

364
Faculty Sections / Re: How to cook chili chicken in 10 minutes
« on: November 22, 2015, 02:20:52 PM »
Sounds good to me! I am definitely going to try that out. Thanks in advance!  ;D

365
Faculty Sections / Are we all Sisyphus?
« on: November 22, 2015, 02:18:06 PM »
Just read this wonderful thought provoking essay written by a French writer- Albert Camus way back in 1942. I must say I am deeply touched by the tone! Here goes my selected favorite part of the insights provided by Camus. Hopefully this will give you a food for thought too..

Quote
The gods had condemned Sisyphus to ceaselessly rolling a rock to the top of a mountain, whence the stone would fall back of its own weight. They had thought with some reason that there is no more dreadful punishment than futile and hopeless labor.



At the very end of his long effort measured by skyless space and time without depth, the purpose is achieved. Then Sisyphus watches the stone rush down in a few moments toward tlower world whence he will have to push it up again toward the summit. He goes back down to the plain. It is during that return, that pause, that Sisyphus interests me. A face that toils so close to stones is already stone itself! I see that man going back down with a heavy yet measured step toward the torment of which he will never know the end. That hour like a breathing-space which returns as surely as his suffering, that is the hour of consciousness. At each of those moments when he leaves the heights and gradually sinks toward the lairs of the gods, he is superior to his fate. He is stronger than his rock. The struggle itself toward the heights is enough to fill a man's heart. One must imagine Sisyphus happy.

It took me a moment to relate myself with the sisyphus. It intrigues me to realize how I feel for that guy & induces me to rethink my way of life..my pursuit of happiness.

Pages: 1 ... 23 24 [25]