Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Jannatul Ferdous

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 16
31
এখন ৫০ থেকে ৬০ লাখ মানুষ ঘুরতে যায়

  পাঁচ বছর আগে এ সংখ্যা ছিল ২৫ থেকে ৩০ লাখ।
 ২০০০ সালের দিকে এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৩ থেকে ৫ লাখ।
ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের হিসাব অনুযায়ী, দেশে পর্যটন খাতে সরাসরি কর্মরত আছেন ১৫ লাখ মানুষ।
তরুণদের হাত ধরে শুরু হয়েছে অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজম। দল বেঁধে দুর্গম পাহাড়ে ঘোরা, সমুদ্রে ডুব লাগানো—এসব এখন বাংলাদেশেই হচ্ছে।

অনেকের কাছে দেশের ভেতরে কোথাও বেড়াতে যাওয়া মানে কক্সবাজারে সমুদ্রসৈকত দেখা, সুন্দরবন অথবা সিলেটের চা-বাগান ভ্রমণ। কিন্তু বর্তমান প্রজন্মের তরুণেরা শুধু এতটুকু ভ্রমণে এখন আর সন্তুষ্ট নন। তাঁরা এখন দুর্গম পাহাড়ের বুনো সৌন্দর্য অথবা সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে সার্ফিংয়ের রোমাঞ্চ পেতে চান। চান সমুদ্রের তলদেশের বিস্ময়কর জগৎ দেখতে, সাঁতরে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিতে কিংবা সিলেটের সবুজ চা-বাগানের উঁচু-নিচু টিলায় সাইকেল চালাতে।

সুখবর হলো, এ ধরনের রোমাঞ্চে ঠাসা পর্যটনের অভিজ্ঞতা এখন দেশেই পাওয়া যাচ্ছে। ইংরেজিতে এ ধারার পর্যটনকে বলা হয় অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজম। এমন পর্যটনের স্বাদ নিতে বান্দরবান, খাগড়াছড়ির দুর্গম পাহাড়ে এখন দল বেঁধে ভ্রমণে যাচ্ছেন নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ। কক্সবাজারে তৈরি হয়েছে ঢেউয়ের সঙ্গে সার্ফিং করার সুযোগ। সিলেটের সবচেয়ে বড় ও পুরোনো চা-বাগান মালনিছড়ার উঁচু-নিচু টিলায় সাইকেল চালানোর সুযোগ এখন পাওয়া যাচ্ছে।

ভ্রমণপিপাসু কিছু তরুণের হাত ধরে অ্যাডভেঞ্চার পর্যটনের যাত্রা শুরু হলেও এখন সরকারিভাবেই এ ধরনের পর্যটন প্রসারে কাজ হচ্ছে। বেসরকারি খাতের সঙ্গে এ খাতে এখন কাজ করছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন ও বাংলাদেশ পর্যটন বোর্ড। পর্যটনসংশ্লিষ্টরা বলছেন, সুষ্ঠু পরিকল্পনা গ্রহণ করলে বাংলাদেশে অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজম সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে গড়ে ‍উঠবে। বাংলাদেশে চালু হওয়া বিভিন্ন ধরনের অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজমের সংক্ষিপ্ত পরিচয় নিচে তুলে ধরা হলো:

ট্রেকিং

উঁচু-নিচু দুর্গম পাহাড়ে দল বেঁধে ঘুরে বেড়ানোকে বলা হয় ট্রেকিং। পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলা বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়িতে ৩ হাজার ফুটের বেশি উচ্চতার পাহাড় রয়েছে ১২টি। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো বান্দরবানের সাকা হাফং, মোদক মুয়াল, কেওক্রাডং প্রভৃতি। এসব পাহাড়ের কয়েকটিকে ঘিরে এখন দল বেঁধে ট্রেকিংয়ের আয়োজন করা হয়। এসব দলের আকার হয় সাধারণত ৫ থেকে ১০ জন। এসব দলকে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করার জন্য একজন পাহাড়ি গাইড বা পথপ্রদর্শক থাকেন। পাহাড়ে রাতে থাকার ব্যবস্থা বা ক্যাম্প করা, খাবার ও নিরাপত্তার বিষয়গুলো আয়োজক গ্রুপের মাধ্যমে করা হয়। দিনের বেলা বুনো পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগের পাশাপাশি পাহাড়ে রাতের আকাশের তারা দেখার মতো রোমাঞ্চ উপভোগ করা যায় এমন ভ্রমণে।

জিপলাইনিং ও রাফটিং

জিপলাইনিং হলো উঁচু পাহাড়ের চূড়া থেকে তার বা দড়ি বেয়ে ভূমিতে দ্রুতগতিতে নেমে আসা। আর পাহাড়ের মাঝ দিয়ে বয়ে চলা জোরালো ঢেউয়ের ঝরনা বা নদী দিয়ে নৌকায় করে বয়ে চলাকে বলা হয় রাফটিং। বান্দরবানের মুনলাইপাড়া নামক স্থানে পর্যটন করপোরেশনের সহযোগিতায় এখন জিপলাইনিংয়ের সুযোগ রয়েছে। আর রাফটিংয়ের উত্তেজনা পেতে হলে যেতে হবে বান্দরবানের নাফাখুমে।

সার্ফিং ও প্যারাগ্লাইডিং

উত্তাল সমুদ্রের ঢেউয়ের সঙ্গে ভারসাম্য রেখে ভেসে চলাই হলো সার্ফিং। প্যারাসুটের মাধ্যমে ওপরে ভেসে থাকাকে বলা হয় প্যারাগ্লাইডিং। কক্সবাজারে লাবণী সমুদ্রসৈকত পয়েন্টে সার্ফিং করার জন্য এখন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সার্ফিংকে খেলা হিসেবে প্রসারের জন্য বাংলাদেশ সার্ফিং ফেডারেশন নামের একটি সংগঠন রয়েছে। বাংলাদেশে সার্ফিংকে উৎসাহিত করতে বিশ্বখ্যাত সার্ফার টম বাওয়ার পর্যটন করপোরেশনের আমন্ত্রণে ইতিমধ্যে কয়েকবার কক্সবাজারে ঘুরে গেছেন। আর কক্সবাজারের হিমছড়ি ও দরিয়ানগর সমুদ্রসৈকত পয়েন্টে প্যারাগ্লাইডিংয়ের সুবিধা রয়েছে। আকাশে ভেসে বেড়ানোর এই ক্রীড়াশৈলীর মাধ্যমে ১২ থেকে ১৫ মিনিট উড়তে উড়তে বঙ্গোপসাগর দেখা যায়।

নদীভিত্তিক পর্যটন

নদীমাতৃক বাংলাদেশে নৌকা বা ছোট আকারের জাহাজে করে ঘুরে বেড়ানোও এখন বেশ জনপ্রিয়। রাজধানীর উপকণ্ঠে পূর্বাচলে শিমুলিয়া ঘাট থেকে বালু নদ আর শীতলক্ষ্যা ধরে গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ ও ঘোড়াশালে সারা দিন ঘুরে বেড়ানোর সুযোগ তৈরি হয়েছে। বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের সহায়তায় বেসরকারি সংস্থা ঢাকা ডাইনার ক্রুজ জাহাজে ঘুরে বেড়ানোর এ ব্যবস্থা চালু করে সম্প্রতি। এসব ভ্রমণে বড় নৌকার সঙ্গে এখন যুক্ত হয়েছে ছোটখাটো জাহাজও। বেসরকারি উদ্যোগে সারা দেশের বিভিন্ন নদী ও হাওর ভ্রমণের এমন অনেক উদ্যোগ এখন নেওয়া হচ্ছে।

বাংলা চ্যানেল পাড়ি

কক্সবাজারে শাহ পরীর দ্বীপ থেকে সেন্ট মার্টিন পর্যন্ত বঙ্গোপসাগরের ১৭ কিলোমিটার দীর্ঘ পথটি বাংলা চ্যানেল নামে পরিচিত। বাংলা চ্যানেলের আবিষ্কারক প্রয়াত আলোকচিত্রী কাজী হামিদুল হক। পর্যটন করপোরেশন ও বেসরকারি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে এখন বাংলা চ্যানেল সাঁতরে পাড়ি দেওয়ার আয়োজন করা হয়। এমন সাঁতারের আয়োজনে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা ও প্রশাসনিক অনুমতি পাওয়ার বিষয়ে আগ্রহী পর্যটকদের সহায়তা করে পর্যটন করপোরেশন।

স্কুবাডাইভিং

সেন্ট মার্টিন দ্বীপে সমুদ্রের তলদেশ দেখার সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে স্কুবাডাইভিংয়ের মাধ্যমে। সেন্ট মার্টিনের স্বচ্ছ সমুদ্রের নিচে দেখা মিলবে বিচিত্র কোরাল ও নানা বর্ণের জলজ উদ্ভিদের। ঢাকা ডাইভার্স ক্লাব নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পর্যটকদের জন্য সেন্ট মার্টিন দ্বীপে স্কুবাডাইভিংয়ের আয়োজন করে।

বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘পর্যটকেরা সব সময় বৈচিত্র্য, ঐতিহ্য আর অ্যাডভেঞ্চার খোঁজেন। আমাদের দেশে যেমন বৈচিত্র্য ও ঐতিহ্য আছে, তেমনি অ্যাডভেঞ্চার নিয়ে কাজ করার সুযোগ আছে। পাহাড়, পর্বত ও বন সবই আছে। বেসরকারি উদ্যোগে এখন বিভিন্ন অ্যাডভেঞ্চারের আয়োজন হচ্ছে, আমরা তাদের সহায়তা করছি।’ তিনি মনে করেন, সঠিকভাবে প্রচার চালানো হলে রোমাঞ্চের খোঁজে বিদেশি পর্যটকেরা বাংলাদেশে আসবেন। ফলে সামগ্রিকভাবে পর্যটন খাতে আয় বাড়বে। বৈদেশিক মুদ্রাও বেশি আয় হবে।

পর্যটন ব্যবসায়ীদের সংগঠন ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (টোয়াব) হিসাব অনুযায়ী, বছরে এখন ৫০ থেকে ৬০ লাখ মানুষ দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘুরতে যায়। বছর পাঁচেক আগেও এ সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০ লাখ ছিল। আর ২০০০ সালের দিকে এ সংখ্যা ছিল মাত্র ৩ থেকে ৫ লাখ। ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশের পর্যটন খাতে সরাসরি কর্মরত আছেন ১৫ লাখ মানুষ। আর পরোক্ষভাবে আরও ২৩ লাখ লোক এ খাতের সঙ্গে যুক্ত আছেন। সব মিলিয়ে এ খাতে প্রায় ৪০ লাখ কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। আর্থিক মূল্যে দেশীয় পর্যটন খাতের আকার দাঁড়িয়েছে কমপক্ষে ৪ হাজার কোটি টাকার।

32
Food Habit / রোজায় সুস্থ থাকুন
« on: May 10, 2018, 01:19:59 PM »
আর কয়েক দিন পর রোজা শুরু। সারা বছরের খাদ্যাভ্যাস বদলে যাবে এই এক মাসে। প্রথম দিকে মানিয়ে নিতেও হবে বেশ অসুবিধা। কিন্তু কিছুটা নিয়ম মেনে চললেই ডায়াবেটিস, অ্যাসিডিটি, কিডনিজনিত নানা সমস্যার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া যাবে সহজেই।

রোজার ডায়েট সম্পর্কে ঢাকার বারডেম জেনারেল হাসপাতালের বিভাগীয় প্রধান ও প্রধান পুষ্টি কর্মকর্তা শামসুন্নাহার নাহিদ জানালেন, রোজায় অনেকে সাহ্‌রিতে খান না বা ইফতারের পর রাতে না খেয়ে শুয়ে পড়েন। আসলে রোজায় কিন্তু কোনোভাবেই সাহ্‌রি খাওয়া বাদ দেওয়া যাবে না; বরং সাহ্‌রিতে খেতে হবে সব থেকে বেশি খাবার। সাধারণত আমরা দুপুরে বেশি খাই। সাহ্‌রিতে খেতে হবে সেই পরিমাণ। আর ইফতারে খেতে হবে সাহ্‌রির থেকে কম কিন্তু রাতের খাবারের থেকে বেশি পরিমাণ খাবার।

ইফতারে যেকোনো এক ধরনের শরবত কিন্তু থাকতেই হবে। সেই সঙ্গে কারও ডায়াবেটিস বা এ ধরনের সমস্যা নেই এমন প্রত্যেক মানুষের কিন্তু যেকোনো ধরনের মিষ্টি খাওয়া দরকার। সঙ্গে চিড়া, মুড়ি, খিচুড়ি বা এজাতীয় অন্য কোনো শর্করাজাতীয় খাবারও খেতে হবে। রোজায় সারা দিন না খেয়ে থাকার ফলে শরীরে যেসব ঘাটতি তৈরি হয়, সেসব পূরণে যেকোনো একটি প্রোটিন খাওয়া জরুরি। সে ক্ষেত্রে ছোলা, চিকেন, হালিম, কাবাব বা ডিমের তৈরি খাবার খেতে হবে। আর যাঁরা ডায়াবেটিসে ভুগছেন, তাঁরা শরবত খাবেন চিনি ছাড়া। আর কিডনি রোগে আক্রান্ত সবাইকে কিন্তু ছোলা, বেসন—এসব বাদ দিতে হবে। বেসন ছাড়া বানানো আলুর চপ, শাকসবজি দিয়ে বানানো পাকোড়া—এসব খাওয়া ভালো বলেও জানান শামসুন্নাহার নাহিদ।

রোজায় সুস্থ থাকতে কোনোভাবেই বাইরের ভাজা–পোড়া খাবার খাওয়া যাবে না। সাহ্‌রি বা ইফতারে যেকোনো ধরনের খাবার খেতে হবে ঘরে বানানো। বাইরে বাসি বা পোড়া তেলের পাশাপাশি একই ধরনের তেলে ঝাল আর মিষ্টি খাবার ভাজার জন্য অ্যাসিডিটি বাড়বে। রোজায় প্রচুর পানি পানের পাশাপাশি পর্যাপ্ত ঘুমও খুব জরুরি। এর সঙ্গে খেতে হবে সহজপাচ্য খাবার। জুস কিনে আনার চেয়ে দেশি ফল দিয়ে নিজেই ঘরে তৈরি করে নিতে পারেন। পাশাপাশি বাজারের হালিম বা জিলাপির বিকল্প হতে পারে ঘরে তৈরি হালিম আর বাসায় তৈরি পায়েস বা মিষ্টি। খেয়াল রাখতে হবে রোজায় কোনোভাবেই ইফতারি, রাতের খাবার আর সাহ্‌রি—কোনোটাই বাদ দেওয়া যাবে না। রোজায় সুস্থ থাকতে খুব বেশি কষ্ট নয়, মানতে হবে নিয়ম।


33
Travel / Visit / Tour / নাফাকুম
« on: May 08, 2018, 11:18:23 AM »

নাফাকুম জলপ্রপাত
বান্দরবান জেলার থানচী উপজেলায় অবস্থিত এই প্রাকৃতিক জলপ্রপাত টি।.২৫-৩০ ফুট এই জলপ্রপাত টি রেমাক্রী হয়ে সাঙ্গু নদীতে মিলেছে যেখানে মিলনস্থলে প্রাকৃতিক ভাবেই কয়েকধাপ সিঁড়ির মত করে হেলে দুলে নৃত্যের ছন্দে সাঙ্গু তে মিশে গেছে। আর এই নৃত্যের দলে এখানে সৃষ্টি হয়েছে আরেকটি ফলস যার নাম রেমাক্রী খুম।

কখন যাবেন
বর্ষার সময় এই জলপ্রপাত টি ভয়াবহ রুপ ধারন করে আর তখন যাতায়াত খুব ই রিস্কি। তাছাড়া বর্ষায় সাঙ্গুর স্রোত অনেক বেশী থাকে ফলে রিস্ক অনেকটা বেড়ে যায়। তাই বর্ষার শেষ দিকে শীতের শুরুতে অথবা শীতের শেষ দিকে বর্ষার শুরুতে যাওয়াই ভালো। অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর অথবা মে-জুলাই মাসে যাওয়া যেতে পারে।


কিভাবে যাবেন
ঢাকা থেকে বান্দরবান যাবেন এসি নন এসি অনেক বাস আছে ভাড়া নন এসি- ৬৫০ আর এসি ৮৫০ টাকা নিবে। বান্দরবান এর থানচী বাসস্ট্যান্ড থেকে লোকাল বাসে থানচী বাজার যেতে হবে, ভাড়া নিবে জনপ্রতি ২০০ টাকা। এছাড়া বান্দরবান শহর থেকে থানচী রিসার্ভ চান্দের গাড়ি নিয়েও যেতে পারেন ভাড়া নিবে ৪০০০-৫০০০ টাকা। থানচী বাজার এর গাইড সমিতি থেকে এবার আপনাকে গাইড ঠিক করতে হবে এবং সাথে রিসার্ভ ট্রলার নিতে হবে। এখানে ট্রলার আর গাইডের এক ধরনের সিন্ডিক্যাট চলে যেখানে তাদের হাতে পর্যটক রা জিম্মি। নাফাকুম পর্যন্ত মোট দুইজন গাইড লাগে যার একজন থানচী বাজার থেকে নিবেন অন্যজন রেমাক্রী বাজার থেকে (এটা নিয়ম সেখানের)। গাইড এখন প্যাকেজ আকারে নিতে হয় থানচী থেকে নাফাকুম পর্যন্ত যাওয়া আসা ২০০০ টাকা এবং রেমাক্রী থেকে যে গাইড নিবেন তাকে দিতে হবে ১০০০ টাকা। আর ট্রলার ভাড়া করবেন ৪০০০-৫০০০/- টাকা দিয়ে। যেদিন যাবেন সেদিন ও পরদিন নিয়ে আসা পর্যন্ত এই কন্টাক্ট। এক বোটে ৬-৭ জনের বেশি যেতে পারবেন না, বলতে গেলে এটাও এক ধরনের সিন্ডিকেট। তবে লোকাল ট্রলার ও আছে যদি ভাগ্য ভালো হয় মিলে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে খরচ অনেক কম পড়বে । থানচী বাজার থেকে রেমাক্রী বাজার পর্যন্ত ভাড়া ১৫০-১৮০ টাকা জনপ্রতি। রেমাক্রী বাজার থেকে প্রায় ২-৩ ঘন্টা ঝিরি পথ পায়ে হেটে পাড়ি দিলেই পেয়ে যাবেন এই অপূর্ব সুন্দর জলপ্রপাত টি। এই দুই থেকে তিন ঘন্টার ঝিরি পথের প্রথমেই ছোট দুটি পাহাড় পাড়ি দিয়ে নেমে যেতে হবে ঝিরি পথে। এর পর পুরোটাই ঝিরি পথ কোথাও পাথুরে কোথাও মাটির কোঠাও কাদা কোথাও পানির। দু তিন জায়গায় হয়ত হাটু অথবা কোমর পানি পাড়ি দিতে হবে এই পথে এ পাড় থেকে ওপাড় যেতে। তাই সাথে দড়ি নিয়ে যেতে পারেন চলার সুবিদারথে। থানচী বাজারে গাইড ঠিক করার পর সবার নাম একটা কাগজে লিপিবদ্ধ করে থানচী থানা ও আর্মি ক্যাম্পে জমা দিয়ে আসতে হবে আপনাকে।


কোথায় থাকবেন
থানচী বাজারে কিছু গেস্ট হাউজ আছে সেখানে রাত্রী যাপন করা যাবে ভাড়া জনপ্রতি ১৫০-২০০ টাকার মত। এছাড়া রেমাক্রী বাজারে আদিবাসীদের বাসায় থাকার ব্যবস্থা আছে জনপ্রতি ১২০-১৫০ টাকা করে রাত্রী যাপন করতে পারবেন। এছাড়াও যারা ক্যাম্পিং করতে চান তারা বাজারের আশেপাশে কোথাও ক্যাম্প করতে পারবেন তবে তেমন ভালো মনপুত জায়গা নেই ক্যাম্পিং এর জন্য। শীতকাল হলে বাজারের ঘাটে শুকনা জায়গায় ক্যাম্প করতে পারেন।


কোথায় খাবেন
যদি থানচী বাজারে থাকেন তাহলে থানচী বাজারেই খাওয়া দাওয়া করার জন্য বেশ কিছু হোটেল পাবেন মোটামুটি মানের খাবার। রেমাক্রী বাজারে থাকলে খাবারের কথা আগেই বলে দিতে হবে তাহলে তারা খাবার রান্না করে রাখবে।পাহাড়ি মুরগি খেতে চাইলে গাইড কে বললে সে ব্যবস্থা করে দিবে, তবে দাম একটু বেশি হবে এবং দামাদামি অবশ্যই করে নিবেন। সবচেয়ে ভালো হয় নিরামিষ খেলে, এতে খরচ অনেক কমে যাবে। কারন সেখানে মুরগির দাম অনেক বেশি।


নাফাকুম জলপ্রপাতের উপরের দৃশ্য
কি কি দেখবেন
বান্দরবানের এমন কোন স্থান নাই যা আসলে না দেখার মত। বান্দরবান শহর থেকে থানচী যেতে পথে পড়বে শৈল্প্রপাত, চিম্বুক পাহাড়, পিক৬৯, নীলগিরি সহ আরো অনেক সুন্দর সুন্দর জায়গা। থানচী থেকে ট্রালারে করে যেতে হবে পাহাড়ি খরস্রোতা সাঙ্গু নদীর উপড় দিয়ে স্রোতের বিপরীতে। এই বিপরীতে চলতে পথে দেখবেন কোথাও শান্ত সৃষ্ট ভদ্র সাঙ্গু আবার কোথাও দেখবেন বিকট ভয়ংকর খরস্রোতা সাঙ্গুর রূপ। যেতে পথে পড়বে রাজা পাথর এলাকা। এই রাজাপাথর এলাকায় দেখবেন বিশাল আকৃতির বহু পাথর যা আদিবাসীদের কাছে দেবতা এবং তাদের কাছে পূজনীয়। ছোট এক বাজার দেখবেন রাজা পাথর এলাকা পাড় হয়ে নাম তার তিন্দু। এরপর ই চোখে পড়বে নাফাকুম জলপ্রপাত এর বয়ে চলা জল আর সাঙ্গুর মিলনস্থল রেমাক্রীকুম। এছাড়া আশেপাশের বিশাল বিশাল পাহাড়, পাহাড়ের গায়ে লেগে থাকা মেঘ ও প্রাকৃতিক পরিবেশ তো আছেই।


ভ্রমন পরিকল্পনা
রাতের বাসে ঢাকা থেকে বান্দরবান। সেখান থেকে লোকাল বাসে করে থানচী যাওয়া। রিসার্ভ নৌকা সম্ভব হলে লোকাল নৌকা করে রেমাক্রী বাজার যেয়ে সে রাতে রেমাক্রী থাকা। পরদিন সকালে রওয়ানা হয়ে নাফাকুম ঘুরে দুপুরের মাঝে রেমাক্রী বাজারে ফেরত আসা। দুপুরে রওয়ানা দিয়ে থানচী বাজার সেখান থেকে বিকালের বাসে বান্দরবান শহর। রাতের বাসে ঢাকা। এভাবে পরিকল্পনা করলে কম খরচ এবং কম সময় নাফাকুম ঘুরে আসা সম্ভব।


টিপস ও পরামর্শ
গ্রুপ করে যাওয়া ভালো, এতে করে খরচ কমে যাবে।
আদিবাসী সভ্যতা, সংস্কৃতি নিয়ে ব্যাঙ্গ করা থেকে বিরত থাকুন ও তাদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন।
অতিরিক্ত নিরাপত্তার স্বার্থে সাঙ্গু নদী পাড়ি দেওয়ার সময় ও নাফাকুম এ যাওয়ার সময় লাইফ জ্যাকেট সাথে রাখুন।
সাঙ্গু নদী একটি খরস্রোতা পাহাড়ি নদী, তাই অতিরিক্ত সতর্কতা নিয়ে নদীতে নামুন। পাহাড়ের খাদ গুলো ভালো করে লক্ষ করে পা ফেলুন নদীতে।
ভারী জামা কাপড় না নেওয়াই ভালো।
ময়লা আবর্জনা যেখানে সেখানে না ফেলে যথাস্থানে ফেলুন, প্রকৃতি কে আপন অবস্থায় ছেড়ে দিন। প্রকৃতির ক্ষতি হয় এমন কোন কাজ থেকে বিরত থাকুন।
চিপস, চানাচুর, বিস্কুটের প্যাকেট পথে না ফেলে ব্যাগে ভরে নিয়ে আসুন ও যথাস্থানে ফেলুন।
চলার সময় নিরবতার সাথে পথ চলুন। হৈ হুল্লুর থেকে বিরত থাকুন।
ছোট বাচ্চা নিয়ে এই ট্রেইলে না যাওয়াই ভালো। তবে মহিলা/মেয়েরা অনায়াসে এই ট্রেইলে যেতে পারেন কোন সমস্যা নাই, ভয়ের ও কিছু নাই। তেমন কঠিন কোন ট্রেইল নয় এটা।
নৌকা নেওয়ার সময় দামাদামি করে নিবেন, ওরা অনেক বেশি ভাড়া চেয়ে বসবে, তাই দর কষাকষি করে যতটুকু কমানো যায়।
ঝিরি পথে হাটার সময় সাবধানতা অবলম্বন করুন যেন পা পিছলে পাথরে পরে কি কোন দুর্ঘটনা না ঘটে।
নাফাকুমের জলপ্রপাতে সাতার না জানলে ঝাপ দিবেন না। পাথর ও খাদে আটকে গেলে মারাত্নক বিপদে পড়বেন।
একা একা কোথাও যাবেন না দল ছেড়ে, পাহাড়ে হারিয়ে গেলে রাস্তা খুজে পাওয়া দুস্কর, তাছাড়া আপনার একার জন্য দলের বাকী সদস্যরা বিপদে পড়বেন।
ব্যাকপ্যাক নিবেন সাথে, হাতের কোন ব্যাগ নিবেন না, পানির বোতল ও শুকনা খাবার রাখুন ট্রেইলে হাটার সময়।
মশার কামোড় থেকে বাচতে অডোমস ক্রীম রাখুন সাথে, এছাড়া প্রাইমারী ওষুধ সাথে রাখুন।
থানচীর পর তেমন মোবাইল নেটওয়ার্ক পাবেন না। রেমাক্রী বাজারে একটি মাত্র ফোনের দোকান পাবেন যেখানে ৫ টাকা মিনিট কথা বলা যাবে।
থানচীর পর বিদ্যুত নেই তাই সাথে এক্সট্রা পাওয়ার ব্যাংক রাখুন।
রেমাক্রী থেকে নাফাকুম যেতে ঝিরিপথে দু তিন জায়গায় হাটু অথবা কোমর পানি পাড়ি দিতে হতে পারে, নিরাপত্তার জন্য দড়ি রাখতে পারেন সাথে।
জলপ্রপাত এর মুখে বসে ছবি উঠানোর সময় অতিরিকত সাবধানতা অবলবন করুন যেন পা পিছলে পড়ে না যান।
ট্রেকিং এর সময় সাথে লাঠি,পুল বা বাঁশ জাতীয় কিছু রাখুন, যার সাহায্য নিয়ে পথ চলতে সুবিধা হবে।


34
Travel / Visit / Tour / শুভলং
« on: May 08, 2018, 11:14:43 AM »
শুভলং ঝর্ণা রাঙ্গামাটি জেলার বরকল উপজেলার মধ্যে পড়েছে। এই ঝর্ণার নির্মল জলধারা পর্যটকদের হৃদয়ে এক ভিন্ন অনুভূতির কাঁপন তোলে। ভরা বর্ষা মৌসুমে শুভলং ঝর্ণার (Shuvolong Waterfall) জলধারা প্রায় ৩০০ ফুট উঁচু থেকে নিচে আছড়ে পড়ে এবং অপূর্ব সুরের মূর্ছনায় পর্যটকদের সযতনে মুগ্ধ করে। বর্তমানে এ এলাকায় উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক কিছু স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি সদর হতে শুভলং এর দুরত্ব মাত্র ২৫ কিলোমিটার।

জলপথে পাহাড়ের বুক চিরে আঁকা-বাঁকা চলার পথে যাওয়ার সময় রাঙ্গামাটির অপার সৌন্দর্য চোখে পড়বে। এখানকার লেক, ঝরনা, বিস্তির্ন নীল আকাশ, পাহাড় সর্বপরি আদিবাসি মানুষের সাধারন সহজ-সরল জীবন আপনাকে বিমহিত করবে। এখানে যেদিকে তাকাবেন নজরে পড়বে কেবল পাহাড় আর কাপ্তাই লেকের পানি। বিশাল কাপ্তাই লেকের পুরোটাই যেন অপার মমতায় দুহাত দিয়ে ধরে রেখেছে পাহাড়গুলি। আকাশের মেঘ আর তার নীলাভ আভা খেলা করে লেকের জলে, দূরে পাহাড়ের আড়ালে হারিয়ে যায়, আবার যেন উকি দিয়ে দেখে নেয়, কেমন আছে লেক। হলফ করে বলা যায়, এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের টান আপনাকে টানবেই।

শুভলং যাবার পথে


রাঙামাটি কিভাবে যাবেনঃ
ঢাকা সায়েদাবাদ, কলাবাগান, ফকিরাপুল অথবা গাবতলি থেকে শ্যামলী, হানিফ, ইউনিক, এস আলম এবং বিআরটিসি বাসে করে যেতে পারবেন রাঙামাটি। তবে সব থেকে ভালো হবে সায়েদাবাদ থেকে টিকিট করলে। নন এসি বাস ৬২০ টাকা । এসি বাস আছে শ্যামলী এবং বিআরটিসির ভাড়া ৯০০-১০০০ টাকা।

সাধারণত সকাল ৮ টা, ৯ টা এবং ১০ টায় প্রতিটি কোম্পানির ২ টা করে বাস ছাড়ে। আবার রাতে ৮ টা থেকে ১০ টার মধ্যে প্রতি কোম্পানির দুইটা করে বাস ছাড়ে।

রাতে (১০-১১ টা) রওনা হলে আপনি খুব ভোরে (৬-৭ টা) পৌছে যাবেন রাঙ্গামাটি।

শুভলং যাবার পথে


শুভলং ঝর্ণায় কীভাবে যাবেন?
শহর থেকে শুভলং ঝর্ণায় যেতে হলে নৌ পথে যেতে হয়। ইঞ্জিন চালিত ট্রলার রিজার্ভ করাই সবচেয়ে ভালো উপায়। শুভলং ঝর্ণা রাঙামাটি জেলার বরকল উপজেলার মধ্যে পড়েছে। রাঙামাটি রিজার্ভ বাজার এলাকা থেকে অথবা পর্যটন এলাকা থেকে ট্রলার রিজার্ভ করা যায়। এগুলোর ভাড়া আকার অনুযায়ী বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। তবে ভাড়া সাধারণত ১২০০-৩০০০ টাকার মধ্যে। মূল শহর থেকে শুভলং যেতে সময় লাগবে দেড় ঘণ্টার মত। শুভলং যেতে হয় কাপ্তাই লেকের উপর দিয়ে।



কোথায় থাকা যায়?
কোথায় থাকবেনঃ

বাস থেকে নেমে এবার থাকার পালা। রাঙ্গামাটিতে পুরাতন বাস স্ট্যন্ড ও রিজার্ভ বাজার এলাকায় বেশকিছু হোটেল আছে। তবে হোটেলে ওঠার আগে যদি একটু বিবেচনা করে নিবেন, যেমন হোটেলটি কাপ্তাই লেকের পাশে কিনা? তাহলে আপনি হোটেল থেকে লেকের মনোরম পরিবেশ ও বাতাস উপভোগ করতে পারবেন। থাকার জন্য রাঙ্গামাটিতে সরকারী বেসরকারী অনেকগুলো হোটেল ও গেষ্ট হাউজ রয়েছে। তাছাড়া আরো কিছু বোডিং পাওয়া যায় থাকার জন্য। বোডিংগুলোতে খরচ কিছুটা কম তবে থাকার জন্য খুব একটা সুবিধার নয়। নিন্মে কয়েকটি হোটেল এর বর্ননা দেয়া হলোঃ

(১) পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্স

১২ টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম রয়েছ। প্রতিটির ভাড়াঃ ১৭২৫ টাকা ৭টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রনহীন রুম রয়েছে প্রতিটির ভাড়াঃ ৮০৫ টাকা যোগযোগ/ফোনঃ ০৩৫১-৬৩১২৬ (অফিস)

(২) হোটেল সুফিয়া

২৭ টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম রয়েছ। প্রতিটির ভাড়াঃ ৯০০ টাকা (একক), ১২৫০ (দ্বৈত) ৩৫টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রনহীন রুম রয়েছে প্রতিটির ভাড়াঃ ৬০০ টাকা যোগাযোগ/ফোনঃ ০৩৫১-৬২১৪৫, ৬১১৭৪, ০১৫৫৩৪০৯১৪৯

(৩) হোটেল গ্রীন ক্যাসেল

৭ টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম রয়েছ। প্রতিটির ভাড়াঃ ১১৫০ হতে ১৬০০ টাকা পর্যন্ত ১৬টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রনহীন রুম রয়েছে প্রতিটির ভাড়াঃ ৭৫০ হতে ১৫০০ টাকা পর্যন্ত যোগাযোগ/ফোনঃ ০৩৫১-৭১২১৪, ৬১২০০, ০১৭২৬-৫১১৫৩২, ০১৮১৫-৪৫৯১৪৬

এছাড়াও রয়েছে আরো বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য হোটেল রয়েছে। যেমনঃ হোটেল জজ , হোটেল আল মোবা, হোটেল মাউন্টেন ভিউ, হোটেল ডিগনিটি, হোটেল সাফিয়া, হোটেল ড্রিমল্যান্ড ইত্যাদি।


35
Psychological Disorder / মা বেশি বোঝে?
« on: June 10, 2017, 01:22:08 PM »
সালেহা বেগম (ছদ্মনাম) মেয়েকে নিয়ে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে এলেন। মেয়ের সম্পর্কে একরাশ অভিযোগ নিয়ে। চিকিৎসক ইতিহাস নিয়ে দেখলেন, মেয়ে লিমার ((ছদ্মনাম) জেদ, অবাধ্য, খিটিমিটি লেগে যাওয়া শুধু মায়ের সঙ্গেই ঘটছে, আত্মীয়স্বজন বা বন্ধু মহলে যথেষ্ট জনপ্রিয় সে। মায়ের সঙ্গে ক্রমশ সম্পর্কের অবনতির মূলে রয়েছে সালেহা বেগমের অতিরিক্ত কর্তৃত্বপরায়ণ মনোভাব এবং নিজের ইচ্ছা জোর করে সন্তানের ওপর চাপিয়ে দেওয়ার প্রবণতা। সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করার মনোভাব।

সালেহা বেগমের মতো ব্যক্তিত্বের ধরন (চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য) অনেকের থাকতে পারে। কোনো বিষয়ে নানা দিক দিয়ে বিবেচনা করা বা পরিস্থিতি অনুযায়ী সহজেই নিজের অবস্থান থেকে সরে আসা বা নিজের মতামতের বাইরে অন্যের ভিন্ন মতবাদকে গ্রহণ করা বা সহজে যেকোনো বিষয়ের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর ক্ষেত্রে এদের মধ্যে অপারগতা দেখা যায়। অনেকে নিয়ম, রীতিনীতি, গোছানো, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, ইত্যাদির ব্যাপারে অতিরিক্ত খুঁতখুঁতে থাকে। অন্যদের চোখে এরা জেদি, খুঁতখুঁতে মানুষ হিসেবে পরিচিত।

সালেহা বেগমের মতো ব্যক্তিরা মনে করেন, তিনি যেভাবে সব দেখছেন বা ভাবছেন, সেটাই একমাত্র ঠিক এবং এর বাইরে আর অন্য কিছু নেই। ফলে তাঁদের মনের বাইরে কিছু ঘটলেই তাঁরা সেটা গ্রহণ করতে পারেন না। একরকম উদ্বিগ্নতা থেকেই উত্তেজনা বা রাগ প্রকাশ করেন।

এ ধরনের বৈশিষ্ট্যের সমস্যা কী?

কখনোই নিজের ভুল দেখতে না পারার কারণে যেকোনো বিষয়ে সব সময় অন্যের দোষই এদের চোখে পড়ে। প্রতিটি জিনিসে ভুল ধরা বা সমালোচনা করা, সামান্য ত্রুটিতে তুলকালাম আচরণ, নিজের মতামত জোর করে অন্যের ওপর চাপিয়ে দেওয়া ইত্যাদি কারণে এসব ব্যক্তির সঙ্গে অন্যদের সব সময় তটস্থ থাকতে হয়। ফলে, এদের সঙ্গে সম্পর্ক চালিয়ে নেওয়া বা জীবনযাপনের স্বাভাবিক আরাম অথবা স্বতঃস্ফূর্ততা—দুই-ই বিঘ্নিত হয়। মূল সমস্যা হয় আশপাশের মানুষের বিশেষত পরিবারের সদস্যদের। তবে এ ধরনের আচরণের মূল ভুক্তভোগী হয় মূলত সন্তানেরা।

অনেক ভালো গুণ যেমন দৃঢ়তা, গভীর মূল্যবোধ, চমৎকার আবেগ, যেকোনো কাজে নিপুণতা বা পারদর্শিতা থাকা সত্ত্বেও বেশির ভাগ মানুষের কাছে এদের জনপ্রিয়তা যেমন কম থাকে, তেমনি শুধু যারা এদের মতামত প্রশ্নহীনভাবে মেনে নেয়, তাদের সঙ্গেই এরা সম্পর্ক ভালো রাখতে পারে।

শুধু তা-ই নয়, কোনো কিছু নিজের মতো হয় না বলে বা সহজে কোনো কিছু মানিয়ে না নিতে পারার কারণে ব্যক্তি নিজেও যথেষ্ট কষ্ট পান। অতৃপ্তিতে ভোগেন। কাছের মানুষদের সঙ্গে দূরত্বও তাঁদের একা করে দেয়।

পরিবারের মানুষের করণীয়

* মানুষের ব্যক্তিত্বের মূল বৈশিষ্ট্য সাধারণত খুব একটা পরিবর্তন হয় না বলে উল্টো তর্ক করা বা আচরণ পরিবর্তন করতে না চাওয়াই ভালো। এতে সম্পর্ক আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

* চাপানো মতামত নিয়ে তর্ক করার বদলে নিজের অবস্থানে দৃঢ় থাকুন এবং মতামতের কোনো অংশ গ্রহণ করার সুযোগ থাকলে সেটা গ্রহণ করুন।

* মায়ের অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণ বা জেদ যথাসম্ভব উপেক্ষা করুন। মনে আঘাত দিয়ে কথা বলা, চিৎকার-চেঁচামেচি ইত্যাদিতে যতটা সম্ভব পাল্টা উত্তর না দেওয়া, প্রয়োজনে সাময়িকভাবে কথা বলা বা আন্তরিকতা কমিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে বুঝিয়ে দেওয়া যেতে পারে, আপনার কাছে এ রকম আচরণ গ্রহণযোগ্য নয়। ভালো মুডে থাকাকালীন মাকে বলা যেতে পারে, তার এ ধরনের আচরণে আপনি কষ্ট পাচ্ছেন।

* নিজের মতামত প্রতিষ্ঠা করতে চাইলে আগে নিজেকে স্বাবলম্বী করার ক্ষেত্রে মনোযোগী হন। পড়ালেখার মাধ্যমে ভিত্তি শক্তিশালী করা এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে সহজ উপায়। আর্থিক বা সামাজিক স্বাবলম্বন আপনার পথচলা অনেক সহজ করে দেবে।

* মায়ের সঙ্গে জেদ করে দ্রুত কোনো বড় সিদ্ধান্ত নেবেন না (যেমন হুট করে বিয়ে করে ফেলা, বাসা থেকে চলে যাওয়া, পড়ালেখা ছেড়ে দেওয়া)। মনে রাখবেন, আপনার সিদ্ধান্তের খেসারত শুধু আপনাকেই দিতে হবে।

* বড় ধরনের সিদ্ধান্ত জোর করে চাপিয়ে দিতে চাইলে (জোর করে বিয়ে দেওয়া) রাগারাগি না করে দৃঢ়ভাবে আপনার মতামত জানান। এ ক্ষেত্রে পরিবারের অন্যদের সঙ্গে প্রয়োজনে কথা বলুন।

* বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে মেলামেশা বাড়ান।

* মায়ের মানসিক কর্তৃত্বপরায়ণতা সীমাবদ্ধতা হিসেবে মেনে নিয়ে নিজের মনের যত্ন নিন। আপনার ভালো লাগার বিষয়গুলো চর্চা করুন, মানুষের সঙ্গে মিশুন, প্রকৃতির কাছে যান, বই পড়ুন, নিজেকে সমৃদ্ধ করুন। মনে রাখবেন, আপনার আত্মবিশ্বাস যেকোনো সমস্যা মোকাবিলা করতে সাহায্য করবে।

মেখলা সরকার

সহকারী অধ্যাপক (মনোচিকিৎসা)

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, ঢাকা।

36
Food Habit / Some harmful things you shouldn’t do after Seheri
« on: May 29, 2017, 12:40:26 PM »





Has been sehuri? Then what to do? Indeed, after the worship of worship, they will make preparations to sleep. Someone will eat a lot of water, someone will eat cigarettes, someone will sit down to watch TV or facebook. Think of it, are you doing something that is harmful for your health in Sehore? Come on, do not know anything about the work.

1) Most people fall asleep with sehuriya. This work is very harmful for health. And play a big role in increasing weight and causing problems in digestion. Because our metabolism rate decreases as we fall asleep. This causes problems in food digestion. Read the prayer after the sehari, recite the Quran if you practice. If you do not lie immediately, go to bed after half an hour.

2) Why only after saheri, smoking is always harmful for you. Ramadan may be the ideal time to quit smoking. If you smoke after saheri, you will suffer a lot of thirst for the day.

3) Do not drink a lot of water together, do not think that water will be eaten all day. It will not help you in any way. Rather, there will be discomfort in the stomach and there will be problems sleeping.

4) Many people sit in TV watching after Facebook or Facebook. If you do not have to go somewhere in the morning, then exclude this task too. Rest after the prayer. It will be useful to fast during the day.

5) Many people bath after Saheri. Fajr prayers only after the bath. Do not do this. After bathing, digestion problems arise. Take a bath before saheeri take rest.

6) Do not brush teeth right after sehari. Toothbrushing teeth are right to eat. Keeping the time in hand, sehari Sarin. After a while break the tooth brush. Make a nice coolie.

7) Many people drink tea / coffee while eating seafood, because tea tea will not be consumed all day. Do not do this thing at all. Caffeine makes the body dry. As a result, it will be hard to keep the fast throughout the day. At the same time your sleeping will be twelve and the problem of digestion.

8) Those who have morning walk practice, they will be able to walk after the wait and wait after Sehari. In the morning of the day of roast, there will be health losses, pressure on the body will be too much. Walking Practice Give It Some Afternoon or Evening

37
মাদকাসক্তি থেকে নিরাময়ের কিছু উপায়

বর্তমানে চলমান অনেক সামাজিক ব্যাধির মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাধি হল মাদকাসক্তি। অনেক পরিবারই এই ব্যাধির ভুক্তভোগী। একটি পরিবারের কোন একজন ব্যক্তি মাদকাসক্ত হলে, তা শুধু ঐ ব্যক্তিকেই নয় বরং পুরো পরিবারকেই নানারকম সমস্যার সম্মুখীন করে তোলে। আর এই সমস্যাগুলো থেকে উঠতে গেলে প্রথম যা দরকার সেটা হল, মাদকাসক্ত ব্যক্তির চিকিৎসা।
অধিকাংশ ক্ষেত্রে পরিবারের কোনো ব্যক্তি মাদকাসক্ত হলে, পরিবার তার আরোগ্যের জন্য তাকে পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করে দেয়। কিন্তু এমন অনেক পরিবার আছে যারা অর্থনৈতিক ভাবে অসচ্ছল অথবা তাদের পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটিই হয়তো মাদকাসক্ত। সেক্ষেত্রে তারা হয়তো মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করতে পারছে না। কিন্তু এরকম পরিস্থিতিতে, মাদকাসক্ত ব্যক্তি ও তার পরিবার যৌথ প্রচেষ্টার মাধ্যমে মাদকের আসক্তি থেকে মুক্ত হতে পারে। আবার এমন অনেক ব্যক্তি আছে, যারা নতুন নতুন আসক্তিতে জড়িয়ে পরেছে। কিন্তু তারা চায় আসক্তি থেকে বেরিয়ে আসতে, পরিবারকে কষ্ট না দিতে।
এইসমস্ত পরিস্থিতিতে, যে উপায় বা পদক্ষেপগুলো আপনাকে মাদকাসক্তি থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্য অর্জনে সহযোগিতা করবে, সেইরকম কিছু উপায় এখানে তুলে ধরা হল:
১) মেনে নিন আপনি অসুস্থ
মাদকাসক্তি থেকে নিরাময়ের প্রথম উপায়ই হচ্ছে, আপনাকে মেনে নিতে হবে আপনি অসুস্থ অথবা আপনার একটি মারাত্মক সমস্যা আছে, যা আপনার দৈনন্দিন জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। এবং সুস্থ হবার জন্য আপনাকে আপনার ভিতরে প্রচণ্ড ইচ্ছাশক্তি জাগ্রত করতে হবে।
২) আসক্তির নেতিবাচক দিকগুলো লিখে ফেলুন:
নেতিবাচক দিকগুলো লিখার একটা উদ্দেশ্য হল, এই তালিকা আপনাকে আপনার সমস্যা সমাধানে এবং ইচ্ছাশক্তিকে জাগিয়ে রাখতে সহযোগিতা করবে। তালিকাটি হতে পারে এমন-
-মাদকাসক্তির ফলে আপনার বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা হচ্ছে
-ভালবাসার সম্পর্কগুলো ভেঙে যাচ্ছে
-মানসিক বিভিন্ন সমস্যা যেমন- হতাশা, দুঃশ্চিন্তা দেখা দিচ্ছে
-বিভিন্ন জায়গায় ধার করে মাদক গ্রহণে এখন আপনি লজ্জায় পড়ছেন, ইত্যাদি।
৩) ইতিবাচক পরিবর্তনের একটি তালিকা তৈরি করুন:
মাদক ত্যাগ করলে আপনার জীবনে কী কী ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে তার একটি তালিকা তৈরি করুন। যেমন-
-আপনি স্বাধীন অনুভব করবেন
-আত্মীয় বা প্রিয়জনের সাথে সময় কাটাতে পারবেন
-অর্থ সঞ্চয় করতে পারবেন
-আত্মবিশ্বাস ফিরে পাবেন, ইত্যাদি।
৪) কেন আপনি মাদক ত্যাগ করতে চান তার একটি তালিকা তৈরি করুন:
এটা করতে আপনি আপনার বন্ধু বা পরিবারের সহযোগিতা নিতে পারেন। এই তালিকা আপনাকে আপনার মনোবল বাড়াতে সহযোগিতা করবে। তালিকাটি হতে পারে এমন-
-আপনি খুব ভাল সন্তান, স্বামী বা স্ত্রী হতে চান
-আপনি আপনার সন্তানের ভাল বাবা বা মা হতে চান
-আপনি আপনার পরিবারের অর্থনৈতিক সংকট দূর করতে চান
-আপনি স্বাভাবিক জীবন ফেরত চান, ইত্যাদি।
৫) পরিকল্পনা তৈরি করুন:
পরিকল্পনা করা যেতে পারে কিছু ধাপে ধাপে-
-একটি দিন নির্ধারণ করুন যেদিন থেকে আপনি আর মাদক গ্রহণ করবেন না।
-নিজের সিদ্ধান্তে অটল থাকার জন্য ব্যক্তিগত ও পেশাগত সহযোগিতা নিন। যেমন: পরিবার ও প্রিয়জনের সাথে বেশি বেশি সময় কাটান, ডাক্তারের পর্যবেক্ষণে থাকুন, কাউন্সেলর বা সাইকিয়াট্রিস্ট এর কাছে কাউন্সেলিং সেবা নিন। তারা আপনাকে আপনার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সহযোগিতা করবে।
-মেডিটেশন করুন, ব্যায়াম করুন, নিয়মিত খেলাধুলা করুন। এগুলো আপনাকে শারীরিক ও মানসিক সমস্যা থেকে কিছুটা হলেও স্বস্তি দেবে।
-প্রতিদিন নামাজ পড়ুন, ধর্মচর্চা করুন। ধর্মের নির্দেশনাগুলো মেনে চলার চেষ্টা করুন। এতে আপনি মানসিক শান্তি ও মনোবল পাবেন এবং আপনার উদ্দেশ্য আরো শক্ত হবে।
-আপনার পরিকল্পনার কথা পরিবার ও বন্ধুদের বলুন। যাতে করে তারা আপনাকে সাহায্য করতে পারে।
-আপনার যেসমস্ত বন্ধুরা মাদকাসক্ত, তাদের কাছ থেকে ও মাদক গ্রহণের স্থান থেকে দূরে থাকুন।
-বেশি বেশি মজাদার মুভি দেখুন, গান শুনুন।
-বেশি বেশি পানি পান করুন, গোসল করুন, নিয়মিত খাদ্য গ্রহণ করুন।
-নিজেকে ব্যস্ত রাখুন সৃষ্টিশীল কাজের মধ্যে এবং ইতিবাচক চিন্তা করুন।
-যে অর্থ আপনি মাদকের জন্য ব্যয় করতেন তা পরিবার বা প্রিয় বন্ধুর জন্য ব্যয় করুন।
৬) নিজেকে মূল্যায়ন করুন:
যে আচরণগুলো আপনি প্রতিদিন করবেন, সেগুলো নেশা থেকে দূরে থাকার ৩০ দিন পর অভ্যাসে পরিণত হবে। এই অভ্যাসগুলোর ইতিবাচক দিকগুলো লিখে ফেলুন এবং ভাল অভ্যাসগুলো চালিয়ে যান আগামী ৩০ দিন।
৭) হয়তো আপনি মাদকাসক্তি থেকে মুক্ত হয়েছেন, তখন আবার নতুন করে বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে একদিনের জন্যও মাদক গ্রহণ না করাই ভাল।
এটা সত্যি যে, যেকোন ধরনের নেশা বা আসক্তি থেকে বেরিয়ে আসাটা কঠিন কিন্তু অসম্ভব নয়। এক্ষেত্রে আপনি যদি নিজেই নিজেকে সহযোগিতা না করেন তাহলে অন্য কেউ আপনাকে সহযোগিতা করতে পারবে না। তাই আপনাকেই আগে সিদ্ধান্ত নিতে হবে মাদকাসক্তি থেকে মুক্ত হবার জন্য। আর এই পথে হাটতে গিয়ে আপনি ব্যর্থ হতে পারেন, কিন্তু তার মানে এই না আপনি আর চেষ্টা করবেন না।
কথায় আছে, ‘একবার না পারিলে দেখ শতবার’। আবার প্রথম প্রচেষ্টাতেই আপনি সফলও হয়ে যেতে পারেন। আর এই একটি প্রচেষ্টাই আপনার জীবন পাল্টে দিতে পারে।
(Collected)

38
ঘুমন্ত অবস্থায় মস্তিষ্ক থেকে কিছু স্মৃতি হারিয়ে যায়। ফলে পরবর্তী সময়ে নতুন স্মৃতি রাখার জায়গা তৈরি হয়। হয়তো এটাই ঘুমের একটা কারণ। নতুন দুটি গবেষণার ভিত্তিতে সায়েন্স সাময়িকী এ তথ্য দিয়েছে।
প্রতিদিনের তিন ভাগের এক ভাগ সময় মানুষকে কী কারণে ঘুমাতে হয়, সেটা জানতে বিজ্ঞানীরা বছরের পর বছর ধরে চেষ্টা করছেন। তাঁদের কেউ কেউ মনে করেন, ঘুমের সময় মস্তিষ্ক থেকে অনেক তথ্য হারিয়ে যায়। নতুন গবেষণায় সে সম্পর্কে কিছু সমর্থন মিলেছে। একজন গবেষক বলেন, ঘুমের ওষুধ সেবন করে একধরনের ঝিমুনি পাওয়া গেলেও সেটা মস্তিষ্কের স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় বাধা সৃষ্টি করে।
যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক গ্রাহাম ডায়ারিং এ রকম একটি গবেষণায় যুক্ত ছিলেন। তিনি বলেন, ঘুমানোর ফলে মানুষের চিন্তাভাবনা স্পষ্ট হয়। মোদ্দাকথা, ঘুমের সময় মস্তিষ্ক কোনোভাবেই নিষ্ক্রিয় থাকে না, বরং এ সময় অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সেরে নেয়। উন্নত বিশ্বে লোকজন ঘুমের সময় কমিয়ে ফেলায় সেই স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটছে।
মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষগুলোর মাঝখানে বিভিন্ন তথ্য সংরক্ষিত থাকে বলে অনেকে ধারণা করেন। ডায়ারিং বলেন, মানবমস্তিষ্ক অনেক বেশি তথ্য জমিয়ে রাখতে পারে। পরে সেগুলোর ক্রমবিন্যাস করে। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে সেই ক্রমবিন্যাসের অভাবে স্মৃতিগুলো হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে।
দ্বিতীয় গবেষণাটি উইসকনসিন সেন্টার ফর স্লিপ অ্যান্ড কনশাসনেসের একদল বিজ্ঞানী পরিচালনা করেন। তাঁরা ইঁদুরের মস্তিষ্কের মধ্যবর্তী স্নায়ুকোষগুলোর কার্যক্রম ইলেকট্রন মাইক্রোস্কোপ দিয়ে পর্যবেক্ষণ করে দেখতে পান, জাগ্রত অবস্থায় কোষগুলো শক্তিশালী ও প্রসারিত অবস্থায় থাকে। আর ইঁদুরের ঘুমন্ত অবস্থায় সেগুলোই আবার প্রায় ২০ শতাংশ সংকুচিত হয়ে পড়ে। সম্ভবত তখনই পরের দিন নতুন স্মৃতির স্থান সংকুলানের প্রক্রিয়াটা সম্পন্ন হয়। গবেষক দলটির সদস্য শিয়ারা সিরেলি বলেন, জাগ্রত অবস্থায় মস্তিষ্কের কোষগুলোর আকার ও শক্তির ভারসাম্য বিপর্যস্ত হয় এবং ঘুমন্ত অবস্থায় পুনরুদ্ধার হয়।

39
Psychological Disorder / ডিমেনশিয়া
« on: November 01, 2016, 03:07:44 PM »
ডিমেনশিয়া এক ধরনের ভুলে যাওয়া রোগ। এ রোগে মানসিক সক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়। ডিমেনশিয়া সাধারণত ৬০ বছর বয়সের পরে হয়ে থাকে। তবে ক্ষেত্র বিশেষ এটি আরো আগেও হতে পারে।

ডিমেনশিয়া রোগীদের সাধারণত মানসিক ও আচরণগত সমস্যা দেখা দেয়। পরিবারের সদস্যদের অবহেলার কারণে অনেক সময় এ রোগটি লোক চক্ষুর আড়ালেই থেকে যায়। সঠিক রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা দিতে পারলে ডিমেনশিয়া আক্রান্ত ব্যক্তির জীবন যাত্রায় সার্বিক পরিবর্তন আনা সম্ভব।

ডিমেনশিয়ার লক্ষণসমূহ-

– কোনো কাজ করে ভুলে যাওয়া।
– পরিচিত মানুষকে চিনতে না পারা।
– জানা কাজ করতে না পারা।
– ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন হওয়া।

মানসিক সমস্যার লক্ষণসমূহ-

– বিষণ্নতা।
– মানুষকে অহেতুক সন্দেহ করা।
– সবসময় মনে করা যে আশেপাশের মানুষ তাকে নিয়ে কথা বলছে।

আচরণগত সমস্যা-

– অস্থিরতা।
– হঠাৎ রেগে যাওয়া।
– কাউকে কিছু না বলে বাইরে কোথাও চলে যাওয়া।
– ক্ষুধা কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া।
– ঘুম কমে যাওয়া বা বেড়ে যাওয়া।
– পরিচর্যাকারীকে যত্ন নিতে বাঁধা দেয়া।

কাদের এ রোগ কম হয়?

– কর্মক্ষম ব্যক্তিদের এবং যারা নিয়মিত শরীরচর্যা করে তাদের ক্ষেত্রে এ রোগের প্রাদুর্ভাব কম দেখা যায়।

ডিমেনশিয়ার ঝুঁকিসমূহ-

– ডায়বেটিস, উচ্চ রক্তচাপ এবং আগে কখনও স্ট্রোক থাকলে ডিমেনশিয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

পরিচর্যাকারীদের করণীয়-

– রোগের লক্ষণ দেখা দিলে মানসিক রোগ বিভাগে যোগাযোগ করা।
– ডাক্তারের পরামর্শমতো ওষুধ খাওয়ানো।
– রোগীর জন্য একজন নির্দিষ্ট পরিচর্যাকারী নিয়োজিত করা।
– রোগীকে একই জায়গায় কিছুক্ষণ পরপর খাবার খাওয়ানো।
– নির্দিষ্ট সময় পরপর বাথরুমে নিয়ে যাওয়া।
– রোগীকে তার চেনা জায়গা থেকে না সরানো।
– ধারালো জিনিষপত্র সরিয়ে রাখা।
– বাথরুম ও বাইরে যাওয়ার দরজায় নির্দিষ্ট চিহ্ন দিয়ে রাখা।
– রোগীর নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বরসহ একটি কাগজ রোগীর সাথে রাখা।
– নিয়মিত সূর্যের আলোতে কিছু সময় রোগীকে রাখা।
– পরিমিত শাকসবজি খাওয়ানো ও পানি পান করানো।

প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।
ডা. সাদিয়া তারান্নুম

সহকারী অধ্যাপক, মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, আশিয়ান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

40
চিকিৎসার উদ্দেশ্য

মূল উদ্দেশ্য ডিপ্রেশন বা ম্যানিক পর্যায়ের সিম্পটম গুলোকে কমানো হলেও, এই রোগের চিকিৎসার আরো কিছু দিক থাকে। যেমন; রোগটির সমস্যাগুলি যাতে বার বার ফিরে না আসে সেদিকে খেয়াল রাখা, সেই সাথে ডিপ্রেশন কারনে অতি খারাপ মনকে ভালোর দিকে রাখা এবং অতি ভালো থাকা মনকে (ম্যানিক পর্যায়) স্বাভাবিক অবস্থায় রাখাও এরোগের চিকিৎসার উদ্দেশ্য। মনের অবস্থাকে স্বাভাবিক বা মাঝখানে রাখাই চিকিৎসার একটি বড় দিক।

চিকিৎসা

মুড স্টেবিলাইজার; অর্থাৎ মুডকে স্টেবল রাখার জন্য এ ধরনের ওষুধ ব্যাবহার করা হয়। বিষন্নতা বা ম্যানিক পর্যায়, কোনো দিকে যেনো অতিরিক্ত ঝুকে না পরে বরং মনকে মাঝখানে ধরে রাখে এই মুড স্টেবিলাইজার।

এন্টিডিপ্রেশেন্ট; অতিরিক্ত খারাপ হয়ে যাওয়া মন বা ডিপ্রেস্ট মনকে স্বাভাবিক অবস্থায় আনার জন্য এধরনের ওষুধ ব্যবাহার করা হয়।

এন্টিসাইকোটিক; ম্যানিক পর্যায়ের চিকিৎসার জন্য এন্টিসাইকোটিক ওষুধ ব্যবাহার করা হয়।

সেই সাথে প্রয়োজন মতো ঘুম বা অস্থিরতা কমানোর জন্যও কিছু কিছু ওষুধ ব্যাবহার করা হয়।

সাইকোথেরাপী; সাধারনত সিম্পটম যখন বেশী থাকে তখন সাইকোথেরাপী কার্যকরী ভুমিকা রাখতে পারেনা। তবে ফ্যামেলি এডুকেশন বা সাইকোএডুকেশন অত্যন্ত প্রয়োজনীয় দিক। যার মাধ্যমে পরিবারের সদস্যদের রোগটির বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য বা নির্দেশনা দিয়ে, কখন কি করতে হবে সেসব বিষয়ে শতর্ক করে তোলা হয়।

ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব

সহযোগী অধ্যাপক ও কোঅর্ডিনেটর- সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি) মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা এবং প্রাক্তন মেন্টাল স্কিল কনসালট্যান্ট, বিসিবি।

41
বাইপোলার এ্যফেকটিভ ডিজঅর্ডার’ এমন একটি মানসিক রোগ যা নাম দিয়ে চেনা যায়। ‘বাই’ শব্দের অর্থ দুই, আবার ‘পোলার’ মানে মাথা। অর্থাৎ এই রোগটির দুটি মাথা বা দুটি দিক থাকে। এক দিকে থাকে ডিপ্রেশন (বিষণ্নতা), যখন আক্রান্ত মানুষটি প্রচন্ডভাবে বিষণ্নতায় আক্রান্ত হয়, মন খারাপ থাকে। অন্য দিকে থাকে ম্যানিক কন্ডিশান, অর্থাৎ মানুষটি তখন নিজেকে অনেক বড় মনে করতে থাকে, যখন তখন ক্ষেপে যায়, সব কিছুতেই অতি চঞ্চলতা কাজ করতে থাকে। খাবার দরকার নাই, ঘুম দরকার নাই, যেন সমস্ত শক্তি ও ক্ষমতা এসে লোকটির উপর ভর করে।

দুটি দিক থাকলেও রোগ মূলত: একটিই। নাম ‘বাইপোলার এ্যফেকটিভ ডিজঅর্ডার’। ডিপ্রেশন বা ম্যানিক, এক একটি এপিসোড বা পর্যায়, সাধারনত: দুই থেকে ছয় মাস, কখনো কখনো আরো বেশী সময় ধরে থাকতে পারে। চিকিৎসার ভিতর থাকলে যা কমে আসে।

কেন হয়?

কোন কারন তেমন ভাবে আবিষ্কৃত না হলেও, বংশ পরম্পরায় এই রোগের একটা সম্পর্ক বোঝা গেছে। অর্থাৎ পূর্ববতী নিকট আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে কারো এরোগ থাকলে তা পরবর্তী জেনারেশন এর মাঝে হতে পারে।

শান্ত নামের ছেলেটির গল্প

শান্ত ছেলেটি হঠাৎ চঞ্চল হয়ে উঠার একটি বড় কারন হতে পারে, এই ‘বাইপোলার এফেকটিভ ডিজঅর্ডার’। হঠাৎ অবাদ্ধ হয়ে যাওয়া বা বেয়াদব হয়ে যাওয়া নয়, বরং একটি মানসিক রোগে আক্রান্ত হওয়া। কি হচ্ছে, কি হয়, না ভেবে, আচরনে পরিবর্তন আসার সাথে সাথেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হওয়া উচিত।

রোগীর আত্মীয় স্বজনরদের যা যা মনে রাখা প্রয়োজন

এটি এমন একটি রোগ যা প্রয়োজনীয় চিকিৎসার আওতায় থাকলে সম্পূর্ন স্বাভাবিক জীবন কাটানো সম্ভব। বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই যা না করে সবাই ভুল বুঝে চিকিৎসার ব্যাবস্থা না করে বিভিন্ন উপদেশ দিতে থাকে। মনে রাখতে হবে, উপদেশে কোন রোগ সারে না। শারীরিক রোগ যেমন উপদেশে সারার নয়, তেমনি মানসিক রোগের ক্ষেত্রেও একই কথা মনে রাখতে হবে। স্বাভাবিক আচরনের পরিবর্তন এবং রোগাক্রান্ত অবস্থার পরিবর্তনের মাঝে পার্থক্য থাকে, যা একটু খেয়াল করলেই বোঝা যায়। তবে অবশ্যই উভয় ক্ষেত্রেই বিষয়গুলিকে বিশেষ গুরুত্ব সহকারে দেখতে হবে।

সতর্কতা

‘বাইপোলার এ্যফেকটিভ ডিজঅর্ডার’ রোগটির একটি সমস্যার দিক হলো, এটি একবার হলে, চিকিৎসায় স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসলেও মনে রাখতে হবে এ রোগের সমস্যাগুলি আবার যেকোন সময় ফিরে আসতে পারে। সমস্ত উপসর্গ দূর হয়ে গেলেও এরোগটি আর হবেনা এটি বলা সম্ভব নয়।

লোকে কি বলবে বা কুসংস্কারের ভাবনা না ভেবে বরং চিকিৎসার স্মরণাপন্ন যত দ্রুত হওয়া যাবে ততই মঙ্গল।


ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব

সহযোগী অধ্যাপক ও কোঅর্ডিনেটর- সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি) মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা এবং প্রাক্তন মেন্টাল স্কিল কনসালট্যান্ট, বিসিবি।


42
জেন্ডার আইডেন্টিটি ডিজঅর্ডার

ছেলে কিন্তু ছেলে হিসাবে নিজেকে আর দেখতে চায় না; মেয়ে কিন্তু মেয়ে হিসাবে নিজেকে আর মেলাতে চায় না। এমন ঘটনা খুব বেশি না হলেও মাঝে মাঝে পাওয়া যায়। আমাদের দেশে বা সমাজে এটি তুলনামুলকভাবে কমই পাওয়া যায় অন্যান্য উন্নত দেশের তুলনায়। এটাকে জেন্ডার আইডেন্টিটি ডিজঅর্ডার বলে।

এই রোগে একজন মানুষ যেটা নিয়ে জন্ম গ্রহণ করেছেন সেটাতে তিনি আরাম বোধ করেন না। নিজেকে অন্য লিঙ্গের লোক মনে করেন। নিজের লিঙ্গ পরিবর্তন করতে চান। অন্য লিঙ্গের মানুষের আচরণ অনুকরণ, অনুসরণ করেন। বিপরীত লিঙ্গের জামা কাপড় পড়েন, তাদের সাথে থাকতে, খেলতে পছন্দ করেন। তারা এটাও প্রত্যাশা করেন যে, অন্যরা তাকে বিপরীত লিঙ্গের লোক মনে করবে ও তাদের ন্যায় আচরণ করবে। তারা নিজের পোশাক, চলনভঙ্গি, ভাষা, শব্দ চয়ন, গলার কণ্ঠ সবই অনুকরণ করেন বা করতে চান বা করতে পছন্দ করেন।

ছেলে বা মেয়ে উভয়ের মধ্যেই এই রোগ দেখা যায়। ছেলেরা মেয়েদের মত পোশাক পড়ে, মেয়েদের সাথে খেলে বা খেলতে পছন্দ করে, মনে করে সবাই তাকে মেয়ে হিসাবে মানুক ও আচরণ করুক।

মেয়েদের ক্ষেত্রেও ঠিক এমনটি দেখা যায়। তারা নিজেদেরকে ছেলে হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করার প্রাণান্ত চেষ্টা করতেও পিছপা হন না। বেশির ভাগই নিজের সমাজ, পরিচিতি সবই ত্যাগ করতেও রাজী থাকেন।

এই রোগের সাথে বেশিরভাগেরই অন্যান্য মানসিক রোগ থাকতে পারে কারণ তাদেরকে প্রতিনিয়তই পরিস্তিতির বিপক্ষে লড়াই করতে হয়।

বাচ্চাদের আচরণের পরিবর্তন লক্ষ্য করা ও দ্রুত রোগ নির্ণয় করে উপযুক্ত চিকিৎসা নিশ্চিত করলে ভালো ফলাফল পাওয়ার সম্ভবনা বেশি। দেরি হলে আসলেই এটি একটি জটিল রুপ নেয়।

প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।
ডা. এস এম ইয়াসির আরাফাত

এমবিবিএস, এমবিএ, এমপিএইচ ও এম.ডি. ফেস-বি রেসিডেন্ট- সাইকিয়াট্রি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। অতিরিক্ত ফ্যাকাল্টি, এমপিএইচ প্রোগ্রাম, আশা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ। গবেষক ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জার্নাল এর এডিটর। যোগাযোগঃ arafatdmc62@gmail.com

43
দিনের বড় একটা অংশ কর্মজীবীদের অফিসে কাটাতে হয়। সে কারণে সতেজ থাকাটা জরুরি। অফিসের কাজের চাপ মানসিক চাপ বাড়ায়। অতিরিক্ত মানসিক চাপের ফলে অফিসে যেমন কাজে মন দেওয়া কঠিন হয়ে পড়ে, ঠিক তেমনি বাড়ি ফিরেও অন্য কোনো কাজে মন দেওয়া সম্ভব হয় না। এতে কাজের ক্ষতি হয়। শরীরেও এর প্রভাব পড়ে।
ক্লান্তি-অবসন্নতার কারণে কাজে মনোযোগ দেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়ে, কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রেও ঝামেলা হয়ে যায়। সে কারণে কর্মক্ষেত্রে সতেজ থাকাটা জরুরি।
কিছু নিয়ম মেনে চললে এই ক্লান্তি-অবসন্নতা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। দেখে নেওয়া যাক সেগুলো—
রাতের বেলা সময়মতো ঘুমানোটা অনেক বেশি জরুরি। ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমালে সকালে উঠে সতেজ ভাব কাজ করবে এবং কর্মক্ষেত্রেও ক্লান্তি কাজ করবে না। প্রতি রাতেই একই সময় ঘুমিয়ে সকালে একই সময়ে উঠে পড়ার অভ্যাস করুন। ঘুমের পরিবেশটা নিরিবিলি কি না, তা নিশ্চিত করুন।
প্রতিদিন সকালে ভালোভাবে ভারী নাশতা করুন। অনেক সময় অনেকে তাড়াহুড়া করে সকালের খাবার খেতে ভুলে যান। কিন্তু এটা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সকালে ভালোভাবে খাবার খেলে সহজে ক্লান্ত হবেন না।
দুপুরে যতটা সম্ভব হালকা খাবার খান। দুপুরে অনেকেই ভারী খাবার খেয়ে থাকেন; ফলে ক্লান্তি কাজ করে এবং কাজে মন দেওয়া সম্ভব হয় না।
বারবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। অর্থাৎ কাজের ফাঁকে ফলমূল, বাদাম অথবা সবজি খাওয়া যেতে পারে।
অফিসে চা-কফি পান করুন। কিন্তু অতিরিক্ত মাত্রায় নয়, অর্থাৎ তিন কাপের বেশি নয়। কারণ, কফিতে অতিরিক্ত ক্যাফেইন থাকে, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর।
শরীরের ওজন কমিয়ে ফেলুন। অতিরিক্ত ওজন ক্লান্তি-অবসন্নতার মূল কারণ হয়ে যায়। শরীরের ওজন কম থাকলে এমনিতেই ফুরফুরে থাকবেন।
অফিসে একটানা বসে কাজ করবেন না। কাজের ফাঁকে ফাঁকে মাঝেমধ্যে ব্যায়াম করুন, উঠে হাঁটাহাঁটি করুন।
অফিসে অনেকক্ষণ কাজ করার ফলে অনেক বেশি ক্লান্ত লাগলে কিছুক্ষণের জন্য ঘুমিয়ে নেওয়া যেতে পারে। ১৫-২০ মিনিটের জন্য ঘুমিয়ে নিলে ক্লান্তি কাটিয়ে ওঠা যায়।
প্রতিটা কাজ করার আগে একটা পরিকল্পনা রাখা উচিত। কোন কাজটা আগে করা হবে, কোন কাজটা পরে করা হবে, এভাবে পরিকল্পনামাফিক গুছিয়ে নিলে চাপ কম পড়ে।
কর্মক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণে পানি করুন। সূত্র: উইকি হাউ
* রাতের বেলা সময়মতো ঘুমানোটা অনেক বেশি জরুরি। ছয় থেকে আট ঘণ্টা ঘুমালে সকালে উঠে সতেজ ভাব কাজ করবে এবং কর্মক্ষেত্রেও ক্লান্তি কাজ করবে না। প্রতি রাতেই একই সময় ঘুমিয়ে সকালে একই সময়ে উঠে পড়ার অভ্যাস করুন
* প্রতিদিন সকালে ভালোভাবে ভারী নাশতা করুন। অনেক সময় অনেকে তাড়াহুড়া করে সকালের খাবার খেতে ভুলে যান। কিন্তু এটা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। সকালে ভালোভাবে খাবার খেলে সহজে ক্লান্ত হবেন না

44
Children / Re: সন্তান যাচ্ছে দূরে...
« on: August 31, 2016, 10:12:50 AM »
সন্তানকে দূরে পাঠানোর পর

সন্তান তার পড়ালেখা আর জীবনযাপন সম্পর্কে যা বলছে তা বিশ্বাস করবেন। কিন্তু অবশ্যই তা স্থানীয় অভিভাবক, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অন্য কোনো মাধ্যম থেকে যাচাই করে নেবেন। তবে আপনার আচরণে যেন কখনো এমনটা মনে না হয় যে আপনি সন্তানকে অবিশ্বাস করছেন বা তাকে সন্দেহ করছেন। প্রতিটা ক্ষেত্রে যাচাই না করে মাঝে মাঝে দৈবচয়ন পদ্ধতিতে যাচাই করবেন।
* কেবল সন্তান কবে বাড়িতে আসবে সেটার অপেক্ষা না করে মাঝে মাঝে বাবা-মা নিজেরাই সন্তানের হোস্টেলে চলে যেতে পারেন। তবে কখনোই এমন কোনো কথা বলা বা আচরণ করা উচিত হবে না যাতে সে তার বন্ধুদের সামনে হীন বোধ করে।
* তার নির্ধারিত খরচের বাইরে সে বাড়তি টাকা চাচ্ছে কি না সেটার দিকে নজর দিন। কখনো খুব বেশি বাড়তি টাকা তাকে দেবেন না।
* তার বন্ধুদের সম্পর্কে জানুন। তাদের সঙ্গে পরিচিত হোন, প্রয়োজনে তাদের বাড়িতে দাওয়াত দিয়ে খাওয়ান।
* সন্তান বাড়িতে এলে তার আচরণ পর্যবেক্ষণ করুন। তার পড়ালেখা, ধর্মচর্চা, সম্পর্ক, বন্ধুত্ব, প্রেম নিয়ে তার সঙ্গে কথা বলুন। তার মধ্যে রাতজাগা, অস্বাভাবিক মুঠোফোন ব্যবহার, কিছু গোপন করার চেষ্টা দেখলে সতর্ক হোন। নেশার কোনো লক্ষণ আছে কি না যাচাই করুন।
* সন্তানের প্রতিষ্ঠানের কোনো শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। তাঁর কাছ থেকে প্রকৃত তথ্য নিন। তার ফলাফল জানতে চান।
* স্থানীয় একজন অভিভাবক ঠিক করে দিতে পারেন। যার মাধ্যমে নিয়মিত খোঁজ নিতে পারবেন।
* টেলিফোনে নিয়মিত তার সঙ্গে কথা বলুন, যোগাযোগহীনতা যেন না হয়।
* তার কোনো আচরণে যদি আপনার মনে হয় সে কোনো বিশেষ গোষ্ঠীর সঙ্গে মিশছে, তবে অন্যান্য স্বজন বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহায্য নিয়ে প্রকৃত তথ্য যাচাই করুন। এটি তার ভবিষ্যতের জন্যই মঙ্গল।
* অন্ধবিশ্বাস নয়। সন্তানকে ভালোবাসুন তবে অন্ধভাবে তাকে বিশ্বাস করবেন না।
* সন্তান যদি বিপদে পড়েই যায় তবে তার দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবেন না। তাকে আইনি পথে নৈতিকতার সঙ্গে সাহায্য করুন। মনে রাখবেন দিন শেষে সে-ই আপনার আদরের সন্তান।

45
Children / Re: সন্তান যাচ্ছে দূরে...
« on: August 31, 2016, 10:10:43 AM »
প্রস্তুতিপর্ব

সন্তানের সঙ্গে সহজ সম্পর্ক তৈরি করাটা শিখতে হবে। সে যেন ভয় পেয়ে তার অপরাধ গোপন না করে সে জন্য ছোটবেলা থেকেই তাকে এই শিক্ষাটা দিতে হবে। এর জন্য সন্তানের ভুলত্রুটিগুলো নিয়ে ব্যঙ্গ-বিদ্রূপ করা বন্ধ করতে হবে। অপরের সঙ্গে তাকে তুলনা করা বন্ধ করতে হবে। বিপদে পড়লে যেন সবার আগে আপনার শরণাপন্ন হয় এমন সম্পর্ক তৈরি করুন।
বাবা-মাকে আগে থেকেই মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে যে একটা সময়ের পর তাঁদের সন্তান নিজ জেলার বাইরে বড় শহরে পড়তে যাবে। সেখানে সে সহপাঠীদের সঙ্গে হলে থাকবে। বিষয়টা যেন হুট করে নেওয়া কোনো সিদ্ধান্ত না হয়।
* সন্তানকেও এই প্রস্তুতি নিতে হবে। তাকে বেশ আগে থেকেই ধারণা দিতে হবে যে সে বাবা-মাকে ছেড়ে দূরের শহরে একা একা জীবন যাপন করতে পারে।
* নিজের কাজগুলো নিজে নিজে করার শিক্ষা দিতে হবে।
* সামাজিক দক্ষতা শেখাতে হবে সন্তানকে। যাতে হোস্টেল বা হল জীবনে সে অন্যদের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে।
* পড়ালেখার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক চর্চা থাকতে হবে। তাহলে সে হোস্টেল/হল জীবনে একাকিত্বে ভুগবে না, হতাশাগ্রস্ত হবে না এবং বিপথে যাওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে।
* বাবা-মাকে প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান করে তবেই বড় শহরে পড়তে পাঠাতে হবে সন্তানকে। আর্থিক অনিশ্চয়তার মধ্যে সন্তানকে ঠেলে দেওয়া যাবে না।
* বড় শহরে কোথায় থাকবে, হোস্টেলে না মেসে, সেখানে তার স্থানীয় অভিভাবক কে হবেন এবং যোগাযোগের মাধ্যম কী হবে তার জন্য উপযুক্ত পরিকল্পনা করতে হবে।
* কেবল সন্তানের কথায় নয়। অভিভাবকেরা নিজে যাচাই করবেন কোন প্রতিষ্ঠানে কোন বিষয়ে পড়তে যাচ্ছে। অনেক সময় অভিভাবকেরা বিষয়টি বুঝতে সক্ষম না হলে সন্তানের স্থানীয় শিক্ষকের সঙ্গে পরামর্শ করে নেবেন।
* নিজস্ব বিবেচনাবোধ প্রয়োগ করে দেখবেন যে আপনার সন্তানের মধ্যে দূরের শহরে থাকার সামর্থ্য তৈরি হয়েছে কি না। তার অতীত বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। যদি এমন হয় যে আপনার সন্তান আপনার পরিবারে থেকেই বিপথে যাচ্ছে, তখন তাকে দূরের শহরে পাঠানোটা আত্মঘাতী হতে পারে।


Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 16