Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Samsul Alam

Pages: 1 ... 6 7 [8] 9 10
106
good.

107

বাংলার মুক্তির সশস্ত্র সংগ্রামের প্রথম শহীদ - সার্জেন্ট জহুরুল হক। নোয়াখালির সুধারাম থেকে জগন্নাথ কলেজ, বেঙ্গল লিবারেশন আর্মি থেকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা- প্রতিটা ক্ষেত্রে তিনি উদ্ভাসিত আপন আলোকে। মুক্তি সংগ্রামের আপোষহীন এই জাতীয় বীরের জীবনের পুরোটা সংক্ষেপে তুলে ধরার প্রয়াস।
জহুরুল হক ছিলেন তার বাবা-মা'র তিন সন্তানের মধ্যে সবচেয়ে ছোট। আমরা শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক নামে জানলেও তাঁর পারিবারিক নাম ছিল 'সেরাজ জহুরুল হক', ডাকনাম ''রুনু''! ইংলিশ বানান লিখতেন Zahoorul Haq, আমরা লিখি Zahurul huq/Haque!
জহুরুল হক ছিলেন জন্মশিল্পী। দারুণ ছবি আঁকতেন। তার একটি ছবি 'ভাঙাচোরা একটা সুর্যকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে এক যুবক' যেন ইদানীংকালের 'গ্রাফিতি সুবোধ তুই পালিয়ে যা' এর থিম। তাদের বাসা ছিল ২৫ এলিফেন্ট রোডে, বাসার নাম চিত্রা।
জগন্নাথ কলেজে পড়া অবস্থায়ই যোগ দেন বিমান বাহিনীতে, ট্রেইনিং অফিসার হিসেবে কর্মরত ছিলেন আগরতলা মামলায় গ্রেফতার হওয়ার আগে পর্যন্ত।
সেনাবাহিনীতে কর্মরত কিছু বাঙালি সৈনিক গোপনে গঠন করেছিল বেঙ্গল লিবারেশন আর্মি। লক্ষ্য ছিল পূর্ব-পাকিস্তানের সব সেনানিবাসে একযোগে বিদ্রোহ করে স্বাধীনতা আনয়ন। জহুরুল হক শুরু থেকে জড়িত ছিলেন এর সাথে। নৌবাহিনীর ল্যাফটেন্যান্ট কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেন ছিলেন বিপ্লবী এই সংস্থার প্রধান। এক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবও এর সাথে জড়িত হন। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর কন্যা আখতার সোলায়মান এর করাচীর বাসায় নিয়মিত বঙ্গবন্ধু ও সেনাকর্তাদের মিটিং হত।
১৯৬৮ সালের ৬ জানুয়ারি সরকারি (আইয়ুব আমল) প্রেসনোটে জানানো হয় সরকার পাকিস্তানের স্বার্থবিরোধী একটি চক্রান্ত ধরে ফেলেছে। সারা পাকিস্তানে প্রায় ১৫০০ জন বাঙালিকে গ্রেফতার করা হয়। ১৮ই জানুয়ারি এই অভিযোগেই গ্রেফতার করা হয় বঙ্গবন্ধুকে। সর্বমোট ৩৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করা হয়, এর একজন সার্জেন্ট জহুরুল।
মামলার নাম দেয়া হয় ''রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য'', তবে ভারতীয় ফ্লেভার এড করার নিমিত্তে সরকারি নির্দেশে এটিকে ''আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা'' হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। উদ্দেশ্য ছিল এদের ভারতীয় চর আখ্যায়িত করে শাস্তি দেয়া, নির্বাচনে (৭০-এর) প্রভাব ফেলা।
বিচার চলাকালীন সার্জেন্ট জহুরুল বাংলা ভাষার সরলীকরণ ও এ সংক্রান্ত একটি অভিধান রচনার কাজ করেছিলেন।
তিনি ছাড়া পেলে কী করবেন, সহবন্দীর এরকম প্রশ্নের জবাবে বলেছিলেন, 'আমরা আমাদের লক্ষ্যে পৌছার পথে কিছুটা বাধা পেয়েছি, সুযোগ পেলে আবার লক্ষ্যস্থলে পৌঁছার চেষ্টা করব।''
১৫ই ফেব্রুয়ারি ভোর পাঁচটার দিকে তাকে গুলি করা হয়, সেনা হেফাযতে থাকা অবস্থায়। তাকে গুলি করেছিল পাঞ্জাবী হাবিলদার মঞ্জুর শাহ। জহুরুল হকের সাথে সেদিন আহত হয়েছিলেন ফ্লাইট সার্জেন্ট ফজলুল হক। জহুরুল হককে গুলি করার পর বেয়নেট চার্জ করা হয়, পেটানো হয়। তার দোষ ছিল তিনি একটা পথশিশুকে পেটানোর প্রতিবাদ করেছিলেন।
আঘাতে জহুরুল হকের কলার বোন ভেঙে যায়। অগ্নাশয় ছিড়ে যায়। তার রক্তের গ্রুপ ছিল ও-নেগেটিভ, দুষ্প্রাপ্য।
ঘন্টা দুয়েক পরে তাকে সিএমএইচে নেয়া হলেও অপারেশন করানো হয়নি। রাত সোয়া নয়টায় তার মৃত্যু হয়।
দুপুরে রেডিও পাকিস্তানে জানানো হয় তিনি পালানোর চেষ্টা করেছিলেন। অথচ তার বিরুদ্ধে কোনো অপরাধ তারা প্রমাণ করতে পারেনি, ১৯ জন সাক্ষীর মধ্যে কেউ তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয়নি। কয়েকদিনের মধ্যে তার মুক্তির সম্ভাবনা ছিল। আর তার বুকে গুলি করা হয়েছিল, পিঠে নয়।
শহীদ সার্জেন্ট এর মৃতদেহ তার ভাইয়ের হাতে তুলে দেন পাকসেনাকর্তা রাও ফরমান আলি খান। জহুরুল হকের লাশ নিয়ে শোক মিছিল হয় আওয়ামীলীগ এর নেতৃত্বে। সেসময়ের আওয়ামীলীগ প্রধান আমেনা বেগমের নেতৃত্বে শোক মিছিলে সাদা কাপড়ের ব্যানারে লেখা ছিল 'শহীদের রক্ত বৃথা যেতে দেবো না।'
শোক মিছিল এলিফ্যান্ট রোড, নিউমার্কেট, শহীদ মিনার, নাজিম উদ্দিন রোড, চকবাজার, মোগলটুলি হয়ে সদরঘাট ও জিন্নাহ এভিনিউ(বঙ্গবন্ধু এভিনিউ) হয়ে স্টেডিয়ামে যায়।
জানাজা শেষে সেক্রেটারিয়েট এর সামনে দিয়ে আসার সময় উত্তেজিত জনতার দিকে পুলিশ গুলি ছোড়ে। ঘটনাস্থলেই ইসহাক খান নামে একজন মারা যান। বিক্ষুব্ধ জনতা পূর্তমন্ত্রী, মুসলীম লীগ সভাপতি, তথ্যমন্ত্রীর বাসভবন ও দুটো দমকল গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে।
সার্জেন্ট জহুরুলের অন্তিম শয্যা হয় আজিমপুর করবস্থানে।
সেদিনই কারফিউ জারি করে আইয়ুব, এছাড়া ১৪৪ ধারা জারি করা হয় বড় শহরগুলোতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সর্বদলীয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট আহবান করে, বটতলায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে।
১৫ই ফেব্রুয়ারির সেই নির্মম হত্যাকান্ডই গণ-অভ্যুত্থানের আগুনে আহুতি দেয়। মাওলানা ভাসানী জনসভা করেন। বঙ্গবন্ধুর মুক্তি চাওয়া হয়। ১৮ই ফেব্রুয়ারি শহীদ হন রাবির প্রোক্টর ড. শামসুজ্জোহা। তীব্র আন্দোলনের মুখে আইয়ুব শাহী পদত্যাগের ঘোষণা দেয় ২১শে ফেব্রুয়ারি। ২২ ফেব্রুয়ারি নি:শর্ত মুক্তি দেয়া হয় সব আসামীকে, আগরতলা মামলা প্রত্যাহার করা হয়। ২৩ ফেব্রুয়ারি যখন শেখ মুজিব ''বঙ্গবন্ধু''তে রুপান্তরিত হন, সেদিন ইত্তেফাকের শিরোনাম ছিল ''ফিরিলো না শুধু একজন''- এই একজন শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক, বাংলার এক সুর্যসন্তান।
৭০-এ বঙ্গবন্ধু জহুরুল স্মরণ দিবসে বলেছিলেন, ''জহরুল মরে নাই, মরণেরে শুধু করিয়াছে উপহাস।''
১৫ই ফেব্রুয়ারি পালনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকবাল হল কেন্দ্রীক একটি ছাত্রসেনাবাহিনী গঠন করা হয়, নাম দেয়া হয় ''১৫ই ফেব্রুয়ারি বাহিনী' পরে 'জহুর-১৫'। পরে যে বাহিনী রুপ নিয়েছিল ''জয় বাংলা'' বাহিনীতে, যারাই প্রথম স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময়ে মাস্টারপ্ল্যান করেছিল দেশমুক্তির। নেতৃত্বে ছিল ছাত্রলীগ।
জহুরের শাহাদতের পরই ইকবাল হলের নাম বদলে জহুরুল হক হল করার দাবী পেশ করে ছাত্রলীগ ও ডাকসুর সেসময়ের নেতারা। ডাকসু ভিপি তোফায়েল আহমেদ বলেন, ''সার্জেন্ট জহুরুল হকের মৃত্যু, তার শাহাদাত, তার রক্ত আমাদের আন্দোলনকে গতিশীল করলো, সমস্ত মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়েছিল। সরকার সান্ধ্য আইনইন দিল। আমরা আইন ভেঙে মিছিল করলাম। সেই এলিফ্যান্ট রোডের বাসা চিত্রায় আমরা ইকবাল হলের হাজারো ছাত্র জমায়েত হলাম। সর্বদলীয় ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের পক্ষে আমি ঘোষণা করলাম আজ থেকে ইকবাল হলের নাম পরিবর্তন করে জহুরুল হকের নামে রাখা হবে। সেই থেকেই ইকবাল হল হয়ে গেল জহুরুল হক হল।''
অফিসিয়ালি এই নাম কার্যকর হয় ১৯৭২ সালে। তখন নাম ছিল 'জহুরুল হক হল'। ২০১১ সালে প্রধান ফটকে জহুরুল হকের মুরাল স্থাপন করে এর নাম পরিবর্তন করা হয় ''শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল''।
সেনানিবাসে যেখানে বঙ্গবন্ধু, জহুরুল হক ও অন্যান্যদের বিচার হয় সেখানে জাদুঘর স্থাপন করা হয়েছে বিজয় কেতন মানে। জহুরুল হক যে হ্যান্ড গ্রেনেড দিয়ে বিপ্লবীদের গোপনে প্রশিক্ষণ দিতেন, সেটি এখানে রাখা হয়েছে ''রক্তঋণ'' স্মারক হিসেবে।
২০১১ সালে শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের আয়োজনে আগরতলা মামলার অভিযুক্ত ও তাদের পরিবারকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। প্রধান ভূমিকা রাখেন হল প্রাধ্যক্ষ ড. আবু মো: দেলোয়ার হোসেন। সার্জেন্ট জহুরলসহ অভিযুক্ত ৩৫ জনকে ''জাতীয় বীর'' ঘোষণা করা হয় এবং রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবী ওঠে।
জহুরুলকে নিয়ে পল্লীকবি জসীম উদ্দিন লেখেন,
''মতিউর গেছে, আসাদ গিয়াছে
জহিরুল গেছে আর,
রক্ত জবায় সাজায়েছে তারা
চরণ যে দেশ মা-র।''
জহুরুল ১ম স্মরণ দিবসের স্লোগান ছিল,
''জয় ১৫ই ফেব্রুয়ারি, জয় জহুর, জয় বাংলা''।
- সংগৃহিত

108
১. এক্স-রে আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : রনজেন।
২. বেতার যন্ত্র আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : মার্কিনী।
৩. ক্যালকুলেটর আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : আইকেন ।
৪. কম্পিউটার আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : চার্লস ব্যাবেজ ।
৫. অণুবীক্ষণ যন্ত্র আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : লিউয়েন হুক।
৬. উড়োজাহাজ আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : রাইট ব্রাদারস।
৭. বৈদ্যুতিক বাতি আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : টমাস আলভা এডিসন।
৮. রকেট ইঞ্জিন আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : রবার্ট গডার্ড।
৯. সেফটি রেজার আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : কিংসি জিলেট।
১০. আপেক্ষিক তত্ত্ব আবিষ্কার করেন কে?
উত্তর : আলবার্ট আইনস্টাইন।
- সংগৃহিত

109
১৷ কম্পিউটার- হাওয়ার্ড এইকিন ৷
২৷ আধুনিক কম্পিউটার- চার্লস ব্যাবেজ ৷
৩৷ লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম- ট্যাভেলড লিনাক্স ৷
৪৷ কম্পিউটার প্রোগ্রামিং- গ্রেস হুপার ৷
৫৷ লেজার প্রিন্টার- গেরি স্ট্রাকওয়েদার ৷
৬৷ ডেক্সটপ/পিসি- হেনরি এডওয়ার্ড রবার্টস ৷
৭৷ কম্পিউটার মাউস- ডগলাস এঙ্গেলবার্ট ৷
৮৷ ল্যাপটপ- বিল মেগারিজ ৷
৯৷ টেলিফোন- আলেকজান্ডার গ্রাহামবেল ৷
১০৷ সার্চ ইঞ্জিন- এলান এমটাজ ৷
১১৷ ইন্টারনেট- ভিনটন ডি কার্ফ ৷
১২৷ ই-মেইল- রে টমলিনসন ৷
১৩৷ উইকিপিডিয়া- জিমি ওয়ালস ৷
১৪৷ মাইক্রোপ্রসেসর- মার্সিয়ান টেড হফ ৷
১৫৷ গুগল- ল্যারি পেজ ও সার্জে ব্রিন ৷
১৬৷ জাভা প্রোগ্রামিং ভাষা- জেমস গজলিং ৷
১৭৷ ইউটিউব- চ্যাড হারলি, স্টিভ চ্যান ও জাভেদ করিম ৷
১৮৷ মাইক্রোসফট- বিল গেটস ও পল অ্যালেন ৷
১৯৷ টুইটার- জ্যাক ডোরসে, নোয়া গ্লাস, ইভান ইউলিয়ামস ও বিজ স্টোন ৷
২০৷ অপেরা ওয়েব ব্রাউজার- জন স্টিফেনসন ৷
২১৷ ব্লগিং- ইভান ইউলিয়ামস ৷
২২৷ এস এম এস- ম্যাট্রি ম্যাক্কোনেন ৷
২৩৷ পেন ড্রাইভ- পুয়া কেইন সেং ৷
২৪৷ ওয়ার্ডপ্রেস- ম্যাট মুলানভোগ ৷
২৫৷ ই-বুক- মাইকেল এস হার্ট ৷
২৬৷ লাইক বাটন- জোয়ানেস জোয়েফ ডিমার ৷
২৭৷ ইয়াহু- ডেভিড ফিলো ও জেরি ইয়াং ৷
২৮৷ www এর জনক- টিম বার্নাস লি ৷
২৯৷ মোবাইল ফোন- মার্টিন কুপার ৷
৩০৷ ফেসবুক- মার্ক জুকারবার্গ ৷
৩১৷ সিডি- নোরি ও ওগো ৷
৩২৷ ডিজিটাল ক্যামেরা— স্টিভেন জে সিসোন ৷
৩৩৷ ATM- এর জনক- জন শেফার্ড ব্যারন ৷
- সংগৃহিত

110
★★ ঢাকা→→→→জাহাঙ্গীরনগর
★★ চট্টগ্রাম→→→→ইসলামাবাদ
★★ খুলনা→→→→জাহানাবাদ
★★ সিলেট→→→→জালালাবাদ/শ্রীহট্ট
★★ যশোর→→→→খিলাফাতাবাদ
★★ বাগেরহাট→→→→খলিফাবাদ
★★ ময়মনসিংহ→→নাসিরাবাদ
★★ ফরিদপুর→→→→ফাতেহাবাদ
★★ বরিশাল→→→→ইসমাইলপুর/চন্দ্রদ্বীপ
★★ কুমিল্লা→→→→ত্রিপুরা
★★ কুষ্টিয়া→→→→নদীয়া
★★ ফেনী→→→→ শমসেরনগর
★★ কক্সবাজার→→→→ফালকিং
★★ জামালপুর→→→→সিংহজানী
★★দিনাজপুর→→গন্ডোয়ানাল্যান্ড
★★ ভোলা→→→→শাহবাজপুর
★★ মুন্সিগঞ্জ→→→→বিক্রমপুর
★★ গাইবান্ধা→→→→ভবানীগঞ্জ
★★ রাজবাড়ী→→→→গোয়ালান্দ
★★ সাতক্ষীরা→→→→সাতঘরিয়া
★★ মহাস্থানগড়→→→পুন্ড্রবর্ধন
★★ ময়নামতি→→→রোহিতগিরি
★★ সোনারগাঁও→→→→সুবর্ণগ্রাম
★★ পদ্মা→→→→কীর্তিনাশা
★★ যমুনা→→→→জোনাই নদী
★★ ব্রহ্মপুত্র→→→→লৌহিত্য
★★ বুড়িগঙ্গা→→দোলাইনদী/খাল
★★ ময়নামতি→→→রোহিতগিরি
★★বরিশাল→→→চন্দ্রদ্বীপ/বাকলা
★★ লালবাগদূর্গ→→তেহাবাগ দূর্গ
★★ নোয়াখালী →→→সুধারামপুর
★★ ময়মনসিংহ →→নাসিরাবাদ
★★ কুমিল্লা→→→→ত্রিপুরা
★★ কুষ্টিয়া→→→→নদীয়া
★★মুজিবনগর→→→বৈদ্যনাথতলা
★★ বাগেরহাট→→→খলিফাতাবাদ
★★ আসাদ গেট→→→আইয়ুব গেট
★★ সাতক্ষীরা→→→→সাতঘরিয়া
★★ শেরে বাংলা নগর→আইয়ুব নগর
★★ রাঙামাটি→→→→হরিকেল
★★সেন্টমার্টিন→→নারিকেলজিঞ্জিরা
★★ নিঝুম দ্বীপ→→→বাউলার চর
- সংগৃহিত

111
BCS Cadre / বাংলাদেশ সংবিধান
« on: April 08, 2018, 12:53:32 AM »
1) বাংলাদেশে কোন ধরনের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা প্রচলিত?
উঃ- সার্বভৌম প্রজাতন্ত্র।
2) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন কি?
উঃ- সংবিধান।
3) কোন দেশের কোন লিখিত সংবিধান নাই?
উঃ- বৃটেন, নিউজিল্যান্ড, স্পেন ও সৌদি আরব।
4) বিশ্বের সবচেয়ে বড় সংবিধান কোন দেশের?
উঃ- ভারত।
5) বিশ্বের সবচেয়ে ছোট সংবিধান কোন দেশের?
উঃ- আমেরিকা।
6) বাংলাদেশের সংবিধানের প্রনয়ণের প্রক্রিয়া শুরু হয় কবে?
উঃ- ২৩ মার্চ, ১৯৭২।
7) বাংলাদেশের সংবিধান কবে উত্থাপিত হয়?
উঃ- ১২ অক্টোবর, ১৯৭২।
8) গনপরিষদে কবে সংবিধান গৃহীত  হয়?
উঃ- ০৪ নভেম্বর,১৯৭২।
9) কোন তারিখে বাংলাদেশের সংবিধান বলবৎ হয়?
উঃ- ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭২।
10) বাংলাদেশে গনপরিষদের প্রথম অধিবেশন কবে অনুষ্ঠিত হয়?
উঃ- ১০ এপ্রিল, ১৯৭২।
11) সংবিধান প্রনয়ণ কমিটি কতজন সদস্য নিয়ে গঠন করা হয়?
উঃ- ৩৪ জন।
12) সংবিধান রচনা কমিটির প্রধান কে ছিলেন?
উঃ- ডঃ কামাল হোসেন।
13) সংবিধান রচনা কমিটির একমাত্র মহিলা সদস্য কে ছিলেন?
উঃ- বেগম রাজিয়া বেগম।
14) বাংলাদেশ সংবিধানের  কয়টি পাঠ কয়েছে?
উঃ- ২ টি। বাংলা ও ইংরেজি।
15) কি দিয়ে বাংলাদেশের সংবিধান শুরু ও শেষ হয়েছে?
উঃ- প্রস্তাবনা দিয়ে শুরু ও ৭টি তফসিল দিয়ে শেষ।
16) বাংলাদেশের সংবিধানে কয়টি ভাগ আছে?
উঃ- ১১ টি।
17) বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ/ধারা কতটি?
উঃ- ১৫৩ টি।
18) বাংলাদশের প্রথম হস্তলেখা সংবিধানের মূল লেখক কে?
উঃ- আবদুর রাউফ।
19) প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ ছাড়া কোন কাজ রাষ্ট্রপতি এককভাবে করতে সক্ষম?
উঃ- প্রধান বিচারপতির নিয়োগ দান।
20) রাষ্ট্রপতির মেয়াদকাল কত বছর?
উঃ- কার্যভার গ্রহনের কাল থেকে ৫ বছর।
21) একজন ব্যক্তি বাংলাদশের রাষ্ট্রপতি হতে পারবেন কত মেয়াদকাল?
উঃ- ২ মেয়াদকাল।
22) কার উপর আদালতের কোন এখতিয়ার নেই?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
23) জাতীয় সংসদের সভাপতি কে?
উঃ- স্পিকার।
24) রাষ্ট্রপতি পদত্যাগ করতে চাইলে কাকে উদ্দেশ্য করে পদত্যাগ পত্র লিখবেন?
উঃ- স্পিকারের উদ্দেশ্যে।

25) প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রীদের নিয়োগ প্রদান করেন কে?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
26) এ্যার্টনি জেনারেল পদে নিয়োগ দান করেন কে?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
27) সংবিধানের প্রধান বৈশিষ্ট্য আছে কতটি?
উ:১২টি।
28) বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত কোনটি?
উঃ- সুপ্রীম কোর্ট।
29) সুপ্রীম কোর্টের কয়টি বিভাগ আছে?
উঃ- ২টি । আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগ।
30) সুপ্রীম কোর্টের বিচারপতিদের মেয়াদকাল কত?
উঃ- ৬৭ বছর পর্যন্তু।
31) বাংলাদেশের সংবিধানের প্রথম মূলনীতি কি ছিল?
উঃ- ধর্মনিরপেক্ষতা, জাতীয়তাবাদ, গনতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র।
32) কোন আদেশবলে সংবিধানের মূলনীতি “ধর্মনিরপেক্ষতা” বাদ দেয়া হয়?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
33) কোন আদেশবলে সংবিধানের শুরুতে “বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম” সন্নিবেশিত হয়?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
34) কোন আদেশবলে বাংলাদেশের নাগরিকগণ “বাংলাদেশী” বলে পরিচিত হন?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
35) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “গনতন্ত্র ও মৌলিক মানবাধিকারের” নিশ্বয়তা দেয়া আছে?
উঃ- ১১ অনুচ্ছেদ।
36) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “কৃষক ও শ্রমিকের” মুক্তির কথা বলা আছে?
উঃ- ১৪ অনুচ্ছেদ।
37) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগ পৃথকীকরণ” এর কথা বলা হয়েছে?
উঃ- ২২ অনুচ্ছেদ।


38) “সকল নাগরিক আইনের চোখে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী” বর্ণিত কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ২৭ অনুচ্ছেদে।
39) জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতার অধিকার রক্ষিত রয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩২ অনুচ্ছেদে।
40) গ্রেফতার ও আটক সম্পর্কিত রক্ষাকবচের কোন অনুচ্ছেদ?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৩ অনুচ্ছেদে।
41) জবরদস্তি নিষিদ্ধ করা হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৪ অনুচ্ছেদে।
42) চলাফেরার স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৬ অনুচ্ছেদে।
43) সমাবেশের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৭ অনুচ্ছেদে।
44) সমিতি ও সংঘ গঠনের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৮ অনুচ্ছেদে।
45) চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯ (১) অনুচ্ছেদে।
46) বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯(২) ক অনুচ্ছেদে।
47) সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯ (২) খ অনুচ্ছেদে।
48) পেশা ও বৃত্তির স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪০ অনুচ্ছেদে।
49) ধর্মীয় স্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪১ অনুচ্ছেদে।
50) সম্পত্তির অধিকারের কথা বর্ণিত হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪২ অনুচ্ছেদে।
- সংগৃহিত

112
বিবিসি বাংলা জরিপে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ ২০ বাঙালির তালিকা প্রকাশ করেছিল।
১। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
২। বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৩। কাজী নজরুল ইসলাম
৪। শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক
৫।নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু
৬। বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন
৭। স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু
৮। ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর
৯। মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানি
১০। রাজা রামমোহন রায়
১১। শহীদ তিতুমির
১২। ফকির লালন শাহ
১৩।সত্যজিৎ রায়
১৪। অমর্ত্য সেন
১৫। ভাষা শহীদ
১৬। জ্ঞান তাপস ডঃ মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ
১৭। স্বামী বিবেকানন্দ
১৮। অতিশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান
১৯। জিয়াউর রহমান
২০। হোসেন শহীদ সোহরাওয়াদি
- সংগৃহিত

113
১) শেখ মুজিবকে 'বঙ্গবন্ধু'
উপাধি দেয়া হয় কবে?
উ: ২৩ ফেব্রুয়ারী ১৯৬৯ সালে
২) শেখ মুজিবকে 'বঙ্গবন্ধু'
উপাধি কে দেন?
উ: তোফায়েল আহম্মেদ
৩) কোথায় 'বঙ্গবন্ধু উপাধি
দেওয়া হয়?
উ: রেসকোর্স ময়দানে
৪) ঐতিহাসিক 'ছয়দফা' কে
ষোষনা করেন?
উ: শেখ মুজিবুর রহমান
৫) ছয়দফা ১ম কবে ঘোষনা করেন?
উ: ৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৬৬
৬) বিরোধীদলের সম্মেলনে মুজিব কবে ছয়দফা উথ্থাপন করেন?
উ: ১৩ ফেব্রুয়ারী ১৯৬৬
৭) শেখ মুজিব আনুষ্ঠানিকভাবে কবে ছয়দফা ঘোষনা করেন?
উ: ২৩ মার্চ ১৯৬৬
৮) কোন প্রস্তাবের ভিত্তিতে ছয়দফা রচিত হয়?
উ: লাহোর প্রস্তাব
৯) ছয়দফার প্রথম দফা কি ছিল?
উ: স্বায়ত্বশাসন
১০) 'বাঙ্গালী জাতির মুক্তির সনদ' হিসেবে পরিচিত কোনটি?
উ: ছয়দফা
১১) পূর্ব পাকিস্থানের নামকরণ "বাংলাদেশ" করা হয় কবে?
উ: ৫ ডিসেম্বর ১৯৬৯ সালে
১২) কে বাংলাদেশ নামকরন করেন?
উ: শেখ মুজিবুর রহমান
১৩) শেখ মুজিবুর রহমানকে 'জাতির জনক' ঘোষনা করা হয় কবে?
উ: ৩ মার্চ ১৯৭১
১৪) কে শেখ মুজিবকে জাতির জনক ঘোষনা করেন?
উ: আ.স.ম. আব্দুর রব
১৫) শেখ মুজিব কে জাতির জনক ঘোষনা করা হয় কোথায়?
উ: পল্টন ময়দানে
১৬) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করা হয় কবে?
উ: ৩ জানুয়ারী ১৯৬৮
১৭) আগরতলা মামলার মোট আসামী কতজন ছিল?
উ: ৩৫ জন (শেখ মুজিব সহ)
১৮) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামী কে ছিল?
উ: শেখ মুজিবুর রহমান
১৯) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা কি নামে দায়ের করা হয়েছিল?
উ: "রাষ্ট্রদ্রোহীতা বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য"
- সংগৃহিত

115
Job market for DIU student / Re: Faculties Could Be Promoters
« on: April 08, 2018, 12:41:10 AM »
Right. We should and try our best.

116
Thanks.

117
Guidance for Job Market / Re: Typical Interview Question
« on: April 08, 2018, 12:28:13 AM »
instructive.

118
Guidance for Job Market / Re: How to Say 'No' To Your Boss
« on: April 08, 2018, 12:06:55 AM »
Right. Saying no isn't always a bad practice.

119
Various Resource for Career Development / Re: Learn to say NO
« on: April 08, 2018, 12:02:41 AM »
Nice.

120
Inspiring. Thanks for posting.

Pages: 1 ... 6 7 [8] 9 10