Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - aklima.ph

Pages: 1 2 [3] 4
31
Pharmacy / The Ultimate List of Superfoods
« on: July 09, 2018, 10:06:33 AM »
Green tea

Green tea comes in the form of tea, matcha, and supplements, and is effective for many things, such as depression, weight loss, diabetes, and other health issues.
Black tea

Like green tea, black tea is good for your immune system, your digestive system, heart health, and stress relief.

Coffee

It helps lower your risk of cancer and diseases, such as diabetes, Parkinson’s, and heart disease. It’s good for your metabolism and it helps fight depression. In order to reap these benefits, you have to skip the creamer and the sugar, and take it black.
Turmeric (Curcumin)

Turmeric is a spice that comes from a plant and is often used in cuisine. However, turmeric supplements are recommended for those who need help with weight loss, fighting bacterial infections and inflammation, and preventing cancer and neurodegenerative diseases.
Coconut oil

Coconut oil can be recommended for just about anything. There’s almost a hundred ways you can use coconut oil with food, on your skin or in your hair, and even around the house.
Fish oil

It sounds kind of gross, but fish oil is actually beneficial for a number of things, such as depression, fat burning, stronger bones, clearer skin, hearth health, and more.

Melatonin

Melatonin is actually a natural hormone in your body that helps regulate your sleep cycle and it’s the only hormone you can buy over-the-counter. So, if you suffer from restless sleep or sleeplessness, a melatonin supplement will raise the level of the hormone in your body, and hopefully help you fall asleep.
Garlic

Not only is garlic delicious, it’s also super good for you. It has lots of nutrients that help detox the body, as well as, help prevent Alzheimer’s. It also helps lower the risk of developing heart disease, high cholesterol, and high blood pressure. It’s even good if you have a simple cold.
Pine pollen

Pine pollen is a natural energy booster that’s helpful for working out and continual use promotes energy increase. It comes in a powder or as a pine pollen tincture.
Vitamin C

Vitamin C is well-known for being a great antioxidant. It’s also good for your skin, as well as lowering the risk of having a stroke.

Ginger

Ginger is great for digestion and metabolism, and not only does it help prevent colds, it also helps prevent different cancers and strengthens immunity. It’s also a great ingredient in all kinds of food!
Cinnamon

Cinnamon isn’t just a delicious spice. In fact, it’s also good for your immune system, blood sugar regulation, muscles, and energy.
Lemon

Lemons have been known to help regulate your metabolism, which helps you lose weight and improve your digestive system. They’re even good for things like acne and hangovers.
Honey

Because honey is sweet, it doesn’t sound as healthy. Honey can be a great sugar replacement and has been known to curb appetites. It also works as a great antioxidant.

Chia seeds

Like many other things on this list, chia seeds are good for digestive and heart health, weight loss, energy levels, and more.
Water

Of course water is on this list, water is the best! It’s one of the most natural things in the world and the amount of benefits regular consumption comes with are endless. But, to name a few, it helps with weight loss, digestion, anti-aging properties, skin health, detoxification, and sleep regulation.

Many of the things on this list come in the form of supplements, but are also good for cooking or drinking. Some of these things are even amazing combined and make a pretty good smoothie.


32
Pharmacy / Warning Signs That Your Body Desperately Needs More Water
« on: July 08, 2018, 04:22:51 PM »
The term “dehydration” sounds very serious. You think it has nothing to do with you. It would only happen in poor countries or severe disasters like earthquakes right? No. Dehydration is way too common than most people think.

75% of Americans[1] are chronically dehydrated and don’t even know it. And even mild dehydration can affect our bodies and how we feel a lot. Think about this. “60 percent of our bodies is composed of water, 75 percent in our muscles, 85 percent in our brains, it’s like oil to a machine,” said Dr. Roberta Lee from Clear Lake Regional Medical Centre.

When you’re feeling unwell, quite often it might be the result of dehydration. Check the signs below and you’ll be surprised that how dehydrated your body often is and how some of the annoying health issues can actually be resolved so easily.

1. Fatigue

2. Chronic constipation

3. Headache

Tips

All of these unfavorable symptoms can be avoided, or at least moderated, by regular consumption of water. Here are a few tips on how to actually do so:

    Drink two glasses of water right after you get up. Starting your day with this will not only make you feel refreshed but also aids your digestion.
    Buy a personal water bottle and carry it with you. Make sure to buy one that will actually be comfortable for you to use and carry with you.
    Consume water-based foods. Examples are cucumbers, grapefruits, and, of course, watermelon.
    Download a water consumption tracking app.

33
Sleep problem is so bad that the World Health Organisation (WHO) has described it as a ‘sleep loss epidemic’ with two thirds of adults in developed nations not getting the recommended 8 hours of sleep a night.

In its simplest terms, those of us who have the capacity to have a good night’s sleep just aren’t sleeping enough.

In the US, 35% of adults are not getting 8 hours of sleep every night. In Canada it is 30% and in the UK it is 37%. In Japan, the average time spent asleep is just 6 hours and 22 minutes.

The negative effects of lack of sleep

Sleep deprivation is just really bad for us. Lack of sleep has a lot of negative effects on our physical and mental health.

These include:

    Getting more stressed out
    High blood pressure
    Slower reaction time
    Focus and your attention span diminishes
    Lower sex drive
    More prone to bursts of anger and sadness
    Less creative and mentally exhausted
    Judgement becomes impaired
    Immune system gets weaker
    Becoming more forgetful
    Getting easily distracted
    Higher chance of heart disease and stroke
    More at risk of getting diabetes
    Gaining more weight

Benefits of sleep (that you never realized)

You’ll be happier.
It sharpens your attention span.
It improves your memory.
It promotes healthy muscle building.
It can affect your weight, for the better.
It helps reduce stress.
You will have healthier skin.
It boosts immunity from sickness.
It makes us less accident prone.
You’ll become more focused and productive.
It reduces your chance of getting diabetes.

Source: https://www.lifehack.org/785436/benefits-of-sleep

34
Pharmacy / Vitamins for Enhanced Mental Strength
« on: July 03, 2018, 12:15:10 PM »
1. Omega-3’s
Best sources:Walnuts, chia seeds, sardines, salmon, flaxseed, eggs, fish oil

2. Magnesium
Best sources: Almonds, spinach, cashews, avocado, black beans

3. Vitamin B1: Thiamine
Best sources: Seaweed, sunflower seeds, macadamia nuts, lentils, black beans

4. Vitamin B6
Best sources: Grassfed beef, pistachios, tuna, turkey breast, avocado

5. Vitamin B9
Best sources: Spinach, beef liver, broccoli, asparagus, romaine lettuce.

6. Vitamin B12
Best sources: Beef liver, sardines, wild salmon, eggs, nutritional yeast

7. Vitamin C
Best sources: BroccolI, citrus fruits, bell peppers, watermelon, spinach

8. Vitamin D
Best sources: Natural sunlight or find a Vitamin D supplement.

9. Vitamin E
Best sources: Almonds, kale, Swiss chard, parsley, olives

10. Zinc
Best sources: Pumpkin seeds, grass-fed beef, cashews, mushrooms, spinach

Source: https://www.lifehack.org/781749/brain-vitamins-foods

35
• গবেষকেরা বলছেন, আম খাওয়ার প্রায় দুই ঘণ্টা পর রক্তনালি শিথিল হয়ে যায়
• এটি রক্তচাপ কমায়

বাংলাদেশে আমের মৌসুম মে থেকে আগস্ট-এই তিন মাস। এই সময়ের মধ্যে দেশের প্রতিটি মানুষ গড়ে তিন কেজি করে আম খায়। পাকা-মিষ্টি আমের পুষ্টিগুণ অনেক, এটি কমবেশি সবার জানা। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় প্রথমবারের মতো জানা গেল, যাঁদের উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে, তাঁদের জন্য কতটা উপকারী আম। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা বলছেন, আম রক্তচাপ কমাতে ভূমিকা রাখে। মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়া (পোস্ট মেনুপোসাল) ২৪ জন সুস্বাস্থ্যের অধিকারী নারীকে নিয়ে করা এক গবেষণায় এই তথ্য পাওয়া গেছে। গবেষকেরা বলছেন, হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতেও কার্যকর এই ফল।

আম নিয়ে এই গবেষণাটি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি বিভাগের গবেষকেরা। তাঁরা দেখেছেন, আম খাওয়ার প্রায় দুই ঘণ্টা পর রক্তনালি শিথিল হয়ে যায়। এটাই রক্তচাপ কমার কারণ। আমের আরও একটি উপকারের কথা বলেছেন গবেষকেরা। তা হলো, আম খাওয়ার পর অন্ত্র বেশি সক্রিয় হয়।

হৃদরোগীদের ক্ষেত্রে আমের কার্যকারিতা নিয়ে বিশ্বে এটিই প্রথম কোনো গবেষণা। চলতি জুন মাসেই আমেরিকান সোসাইটি ফর নিউট্রিশনের বার্ষিক সম্মেলনে (নিউট্রিশন-২০১৮) গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করা হয়। এই গবেষণায় আর্থিক সহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ম্যাঙ্গো বোর্ড ও ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।

গবেষকেরা বলছেন, আমে কার্বলিক অ্যাসিডের মিশ্রণ থাকে। যা স্বাস্থ্য সুরক্ষার সম্ভাব্য উপকরণ। গবেষকেরা মনে করেন, আমে থাকা সক্রিয় যৌগ স্বাস্থ্যে ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক সাইদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, আম নিয়ে করা গবেষণার ফলাফল নিশ্চয়ই গুরুত্বপূর্ণ।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা বলেছেন, বয়স বেশি হওয়ার কারণে যেসব নারীর মাসিক স্বাভাবিক কারণে বন্ধ হয়ে যায়, তাঁদের শরীরে হরমোনজনিত পরিবর্তন ঘটে। মাসিক বন্ধ হওয়া নারীদের রক্তচাপ বেশি হওয়ার প্রবণতা থাকে।

বিভিন্ন শস্য, সবজি ও ফলের পুষ্টিগুণ নিয়ে গবেষণা করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক নাজমা শাহীন। তিনি বলেন, আমের রাসায়নিকের হরমোনজনিত প্রভাব আছে, যা গ্রন্থিবাত, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে।

পদ্ধতি ও ফলাফল
মাসিক বন্ধ হওয়া ২৪ জন সুস্বাস্থ্যের অধিকারী নারীকে দৈনিক ৩৩০ গ্রাম মিষ্টি আম খেতে দেওয়া হতো। গবেষণার জন্য পরপর ১৪ দিন তাঁদের ওই পরিমাণ আম থেকে খাওয়ানো হয়। আম খাওয়ার দুই ঘণ্টা পর এসব নারীর হৃৎস্পন্দন, রক্তচাপ, রক্তের নমুনা ও শ্বাসপ্রশ্বাস পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় দেখা যায়, সিস্টোলিক রক্তচাপ উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যায়। হৃৎস্পন্দনের সময় রক্তনালির দেয়ালে প্রবহমান রক্ত যে চাপ প্রয়োগ করে, সেটাই সিস্টোলিক রক্তচাপ (রক্তচাপ মাপার সময় ওপরের সংখ্যা)।

গবেষকেরা দেখেছেন, আম খাওয়ার পর পালস প্রেশার বা ধমনি স্পন্দন চাপও কমে। স্পন্দন চাপ হচ্ছে সিস্টোলিক ও ডায়াস্টোলিক (রক্তচাপ মাপার সময় নিচের সংখ্যা) রক্তচাপের মধ্যকার সংখ্যার পার্থক্য। আম খেলে এই পার্থক্য কম হয়। গবেষকেরা শ্বাসপ্রশ্বাসে হাইড্রোজেন ও মিথেনের পরিমাণও মেপে দেখেন। অন্ত্রে অণুজীবের সক্রিয়তায় এসব গ্যাস তৈরি হয়। ২৪ জন নারীর মধ্যে ৬ জনের নিশ্বাসে মিথেন পাওয়া যায়। এই ছয়জনের মধ্যে তিনজনের আম খাওয়ার পর মিথেনের পরিমাণ কমে। এর অর্থ তাঁদের অন্ত্র ভালো ছিল।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা বলছে, বাংলাদেশ বিশ্বের অষ্টম আম উৎপাদনকারী দেশ। চিকিৎসকেরা বলছেন, হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে পরিমিত পরিমাণে আম খাওয়া প্রয়োজন।

36

খাবার থেকে ক্যালসিয়াম গ্রহণের পাশাপাশি সাপ্লিমেন্টও গ্রহণ করেন অনেকে। তবে এক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মানতে হবে।

কফির সঙ্গে ক্যালসিয়াম নয়: শরীরে ক্যালসিয়াম শোষণের ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে ক্যাফেইন। যা থেকে হতে পারে অস্টিওপোরোসিস। চকলেট ও পালংশাকে থাকা ‘অক্সালেট’, কলিজা ও কিশমিশে থাকা লৌহ এবং শষ্যজাতীয় খাবারে থাকা ‘ফাইটাটস’ ইত্যাদিও শরীরের ক্যালসিয়াম শোষণ ক্ষমতা কমায়।
শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি খনিজ। শক্ত দাঁত ও হাড় পেতে এবং হৃদযন্ত্র, স্নায়ু, রক্ত সঞ্চালনের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া বজায় রাখতে চাই পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্যালসিয়াম।

ভিটামিন ট্যাবলেটের সঙ্গে নয়: মাল্টি ভিটামিন ট্যাবলেটের সঙ্গে ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট খেলে তা ভিটামিন ট্যাবলেটে থাকা লৌহ শোষণে ব্যহত হতে পারে। তাই দুটিকে আলাদা সময়ে খাওয়া ভালো।

স্বাস্থ্য পরীক্ষার আগে ক্যালসিয়াম নয়: স্বাস্থ্যগত কিছু পরীক্ষা যেমন কোলেস্টেরল পরীক্ষার ফলাফলের সঙ্গে ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্টের দা-কুমড়া সম্পর্ক রয়েছে। সাপ্লিমেন্টের প্রভাবে পরীক্ষার ভুল ফল আসতে পারে।

কিছু মারাত্বক ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্টের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য, বদহজম ইত্যাদি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। সাপ্লিমেন্ট গ্রহণের আগে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া জরুরি। কারণ কিছু ওষুধের সঙ্গে বিক্রিয়া করে ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট।

ধূমপান ও মদ্যপানের কারণে অস্টিওপোরোসিসের পাশাপাশি শরীরের ক্যালসিয়াম গ্রহণের ক্ষমতা কমে। তাই বদভ্যাস ত্যাগ করুন।

37
Pharmacy / The human body in numbers
« on: June 09, 2018, 03:35:00 PM »

39
রাজধানী ঢাকার নর্দমায় কার্বাপেনেম, কলিস্টিন রেজিস্ট্যান্ট ই. কোলাই (সুপারবাগ) পাওয়া যাচ্ছে। মেডিকেল জার্নাল ওয়েবসাইট পাবমেড এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

অন্য সবাই সেভাবে লক্ষ্য না করলেও আমরা ডাক্তাররা গত কয়েক বছর থেকেই সি.আর.ই পজিটিভ রোগীদের উপস্থিতি বেশ আতংকের সঙ্গে দেখছি।

বাংলাদেশে গবেষণামূলক জরিপ তেমন হয় না। আমার ধারণা, ঠিকভাবে গবেষণা করলে দেখা যাবে দেশের প্রায় সব আইসিইউ, এইচডিইউতেই সি.আর.ই গিজগিজ করছে। কারণ, অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার।

আমেরিকাতে কয়েক বছর আগে একটা সি.আর.ই কেস পাওয়া গেল। ইন্ডিয়া থেকে যাওয়া একজন রোগীর শরীরে। সেটা নিয়ে জাতীয়ভাবে শোরগোল হয়েছিল- সব ধ্বংস হয়ে যাবে! সুপারবাগ এসে গেছে! মহামারি থেকে রক্ষা নাই! ইত্যাদি।

আর আমাদের এখানে যে ড্রেনের পানিতেও সুপারবাগ চলে এসেছে তার বেলায়। হয়তো হাসপাতালগুলোর বর্জ্য থেকেই এর উৎপত্তি।

সুপারবাগ নিয়ে ভয় পাওয়ার কারণ হল- এগুলো দিয়ে ইনফেকশান হলে চিকিৎসা করা খুব কঠিন। হয়তো আপনার ফুসফুসে বা প্রস্রাবে এরকম ইনফেকশান হল। প্রচলিত কোন অ্যান্টিবায়োটিকে আর কাজ হবে না।

মধ্যযুগে ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশান হলে যেভাবে চিকিৎসা ছাড়াই মরতে হত, সেভাবে মরবেন। একসময় গ্রামকে গ্রাম যেভাবে এক মহামারিতে উজাড় হত, সেরকম দিন ফেরত আসতে যাচ্ছে কিনা সেটাই ভাবছিলাম।

এরকম বিপদের সময় পুরো দুনিয়ার কথা ভাবার সুযোগ থাকে না। নিজের কথা আগে ভাবতে হয়। ভয় লাগছে আমার বা আমার পরিবারের কারো সুপারবাগ ইনফেকশান হলে কী করব?

আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু কিছুদিন আগেই তার এক অতি স্বজনকে হারিয়েছে সম্ভবত এই সুপারবাগ ইনফেকশনে। তাদের গোষ্ঠীসোদ্ধো ডাক্তার। কিছু করতে পারেনি।

আমরা কেউই কিছু করতে পারবো না। বৃদ্ধ মা-বাবা, কোলের শিশু চোখের সামনে দিয়ে চলে যাবে।

রাস্তার পাশের ভাতের হোটেলগুলো সব ড্রেনের ওপরে। সেখানেই ধোয়াধুয়ি চলে। শ্রমজীবী মানুষ সেখানে খায়। দেখলেই ভয় লাগে, সুপারবাগ মহামারি কি অতি সন্নিকটে?

লেখক: ডা. কায়সার আনাম, মেডিকেল অফিসার, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ক্যান্সার রিসার্স অ্যান্ড হসপিটাল।

সূত্র: মেডিভয়েস

40
Pharmacy / Top 9 Foods Most Likely to Cause Food Poisoning
« on: June 02, 2018, 01:18:58 PM »
1. Poultry: Raw and undercooked poultry such as chicken, duck and turkey has a high risk of causing food poisoning.
2. Vegetables and Leafy Greens: Vegetables and leafy greens are a common source of food poisoning, especially when eaten raw.
3. Fish and Shellfish: Fish that has not been stored at the correct temperature has a high risk of being contaminated with histamine, a toxin produced by bacteria in fish.
4. Rice: Uncooked rice can be contaminated with spores of Bacillus cereus, a bacterium that produces toxins that cause food poisoning.
5. Deli Meats: Deli meats including ham, bacon, salami and hot dogs can be a source of food poisoning.They can become contaminated with harmful bacteria including Listeria and Staphylococcus aureus at several stages during processing and manufacturing.
6. Unpasteurized Dairy: Unpasteurized dairy can contain harmful bacteria and parasites such as Brucella,Campylobacter, Cryptosporidium, E. coli, Listeria and Salmonella.
7. Eggs: While eggs are incredibly nutritious and versatile, they can also be a source of food poisoning when they’re consumed raw or undercooked.
8. Fruit: Fruits grown on the ground such as cantaloupe (rockmelon), watermelon and honeydew melon have a high risk of causing food poisoning due to Listeria bacteria, which can grow on the rind and spread to the flesh.
9. Sprouts: Raw sprouts can contain bacteria including Salmonella, E. coli and Listeria which can cause food poisoning.

41
Low back pain is the leading cause of disability worldwide and is becoming more common as our population ages.

Most people who have an episode of low back pain recover within six weeks, but two-thirds still have pain after three months. By 12 months, pain may linger but is usually less intense.

Still, recurrence is common and in a small number of people it may become persistent and disabling. Chronic back pain affects well-being, daily functioning and social life.

A series on low back pain by the global medical journal The Lancet outlined that most sufferers aren't getting the most effective treatment.

The articles state that recommended first-line treatments – such as advice to stay active and to exercise – are often overlooked.

Instead, many health professionals seem to favour less effective treatments such as rest, opioids, spinal injections and surgery.

So, here's what evidence shows you need to do to improve your low back pain.

Risk factors for low back pain

The cause of most people's low back pain remains unknown. But we do know of a number of risk factors that could increase the chance of developing low back pain.

These include a physically demanding job that involves lifting, bending and being in awkward postures. Lifestyle factors such as smoking, obesity and low levels of physical activity are also associated with developing low back pain.

People with low back pain should see a health professional to rule out the more serious causes of pain such as fracture, malignancy (cancer) or infection.

Once patients are cleared of these, the current guidelines from Denmark, the UK and the US advise self-management and psychological therapies as the initial response for persistent low back pain.

These include staying active, doing appropriate exercises and undertaking a psychological program to help manage the pain.

Exercises such as Tai Chi, yoga, motor control (to restore strength, co-ordination and control of the deep core stabilising muscles supporting the spine) and aerobic exercises (such as walking, swimming, cycling and general muscle reconditioning exercises) are recommended.

If any of these therapies fail or stop working, the guidelines point to manual and physical therapies such as spinal manipulation (Denmark, UK, US), massage (UK and US) and yoga and acupuncture (US) – particularly for low back pain lasting more than 12 weeks.

Source: https://www.sciencealert.com/guidelines-for-lower-back-pain-show-drugs-and-surgery-should-be-the-last-resort

42
At least nine people in southern India have died in cases linked to an outbreak of the rare and extremely deadly Nipah virus, according to a report by the BBC.

Nipah is considered a newly emerging deadly virus – scientists only found out that it could jump from bats to other species, including humans, within the past 20 years.

The disease is currently incurable and can be transmitted from person to person. It has killed between 40 percent and 75 percent of infected people in most outbreaks.

These statistics indicate that Nipah has the potential to cause a deadly pandemic, which is why the World Health Organisation lists Nipah as an urgent research priority, alongside diseases like Ebola and SARS.

Of the nine people who have died so far in the city of Kozhikode in Kerala, three cases of Nipah have been confirmed.

Results from the other six are still being tested, and at least 25 more people have been hospitalized.

A little-known virus

Nipah first appeared in Malaysia in 1998, when 265 people became infected with a strange illness that caused encephalitis, or brain inflammation, after they came into contact with pigs or sick people.

In that outbreak, 105 people died, a fatality rate of 40 percent.

Since then, there have been a number of smaller outbreaks in India and Bangladesh, with about 280 infections and 211 deaths – an average fatality rate of 75 percent.

When the first infections jumped from pigs to humans, authorities killed more than a million pigs to try to stop the spread of the disease.

Since then, however, researchers have identified several fruit bat species as the natural hosts of the virus. In some cases, humans have been infected after drinking sap from date palms that bats may have contaminated.

The BBC reported that in the most recent outbreak, mangoes bitten by bats were found in a home where three of the deceased patients lived.

Symptoms for Nipah have varied depending on the outbreak. Many patients first experienced fever and headache, followed by drowsiness and confusion.

Some patients have also shown respiratory flu-like symptoms while infected. In other cases, symptoms progressed to a coma within a day or two.

People who survive the initial infection can have lasting health issues, including personality changes and persistent convulsions. In some cases, the virus has re-activated in patients months or years after exposure, causing illness and death.

Close contact with sick animals or people can spread the disease – in the current outbreak, at least one of the deceased people was a nurse who treated sick patients.

A study of Nipah virus transmission suggested that infected patients' saliva is likely to spread the infection.

For now, the priority is to identify the remaining Nipah cases to ensure the disease doesn't continue to spread.

Source: https://www.sciencealert.com/nipah-virus-has-emerged-deadly-new-outbreak-india-killing-nine-people

43
Pharmacy / Cure Dengue with Papaya Leaf paste
« on: May 09, 2018, 04:10:42 PM »
Just like the juice, the paste prepared from papaya leaves will help in getting rid of dengue fever as well. Even here, you should use only the raw leaves.

Things you need:

    Fresh raw leaves of papaya- 3
    Fruit juice (of your preference) – 2 tbsp

Things you need to do:

    Take 3 fresh raw leaves of papaya.
    Process them in the mixer to make a paste.
    Combine the paste with 2 tbsp of any fruit juice of your choice.
    Mix well.
    Directly consume the mixture.
    Repeat that 2 times every day, for around 7 days.
    You will get total relief from dengue.
Source: https://www.myhealthtips.in/2016/08/papaya-leaf-juice-for-dengue-fever.html

44
Pharmacy / Cut leaves in bagged salads help Salmonella grow
« on: May 06, 2018, 04:00:00 PM »
Juice that escapes from cut leaves encourages the bacteria to thrive

BAD BAGS  Cut or damaged leaves in bagged salad mixes can leak plant juices that promote Salmonella growth.

That past-its-prime bag of spinach buried in the back of your fridge should probably hit the compost heap instead of your dinner plate. The watery gunk that accumulates at the bottom of bagged salad mix is the perfect breeding ground for Salmonella bacteria that could make people sick, researchers report November 18 in Applied and Environmental Microbiology.

The culprit? The juice that oozes out of cut or damaged leaves. After five days in the fridge, small amounts of plant juice sped up Salmonella growth. The bacteria grew avidly on the bag and stuck persistently to the salad leaves, so much so that washing didn’t remove the microbes.

Salmonella’s success inside bagged salads means it’s important for producers to avoid bacterial contamination from the get-go — and for consumers to eat those greens before they get soggy. Popeye would approve.

Source: https://www.sciencenews.org/article/cut-leaves-bagged-salads-help-salmonella-grow

45
পৃথিবীতে অসংক্রামক রোগের বিস্তার বাড়ছে। বাংলাদেশেও অসংক্রামক রোগ বাড়ছে। বিকল কিডনি, ক্যান্সার, হৃদরোগ, চোখের ছানি, মানসিক স্বাস্থ্য ত্রুটি, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস প্রভৃতি অসংক্রামক রোগ বৃত্তের অন্তর্ভুক্ত। বাংলাদেশে প্রায় দুই কোটি মানুষ বিভিন্ন ধরনের কিডনি রোগে ভুগছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৪৫ হাজার রোগী কিডনি রোগের শেষ সীমায় উপনীত হচ্ছে।
বিকল কিডনি রোগের প্রধান উপসর্গ * বমি বমি ভাব ও ক্ষুধামন্দ্যা * রক্তস্বল্পতা ও শ্বাসকষ্ট * প্রস্রাব কমে যাওয়া ও শরীরে পানি জমা * প্রস্রাবে প্রোটিন নির্গমনের কারণে তীব্র গন্ধ ও ফেনা * চর্মরোগ ছাড়াই শরীর চুলকানো ও অংশবিশেষ কালচে হয়ে যাওয়া * দুর্বলতা বৃদ্ধি, উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস বিকল কিডনি রোগ সৃষ্টিতে প্রণোদনা জোগায়। বিকল কিডনি রোগ সৃষ্টিতে স্থূলতার দীর্ঘস্থায়ী প্রত্যক্ষ ভূমিকা আছে। স্থূল ব্যক্তিদের রক্ত পরিশোধনের জন্য কিডনির অতিরিক্ত শ্রম ব্যয় হয়। জলবায়ু ও পরিবেশের অবনতি এবং খাদ্যে ভেজাল বিকল কিডনি রোগ সৃষ্টির অন্যান্য কারণ।
বিকল কিডনি রোগের চিকিৎসা সহজলভ্য; তবে অত্যন্ত ব্যয়সাপেক্ষ এবং আইনের সঙ্কীর্ণতার কারণে চিকিৎসা সহজপ্রাপ্য নয়। হৃদরোগ আক্রমণে মৃত্যুর তুলনায় চিকিৎসাবঞ্চিত বিকল কিডনি রোগীর মৃত্যুর আশঙ্কা দশগুণ বেশি।
বিকল কিডনি রোগের চিকিৎসা ডায়ালাইসিস ও কিডনি প্রতিস্থাপনে সীমাবদ্ধ। ডায়ালাইসিস অত্যন্ত ব্যয়বহুল। হাসপাতাল ও ক্লিনিক ভেদে ডায়ালাইসিস চিকিৎসায় মাসে খরচ হয় ৪০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা। আর্থিক দীনতার কারণে ৯০ শতাংশের অধিক রোগী তিন বছরের মধ্যে চিকিৎসা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন এবং এর ফলাফল বোধগম্য।
বিকল কিডনির উত্তম আধুনিক চিকিৎসা হচ্ছে, একজন সুস্থ ব্যক্তির দু’টি থেকে একটি কিডনি সহজ অপারেশনের মাধ্যমে সংগ্রহ করে রোগাক্রান্ত ব্যক্তির পেটের নিম্নদেশে স্থাপন। কিডনি প্রতিস্থাপনে পুরো অপারেশনে ২ ঘণ্টার মতো সময় লাগে। বাংলাদেশে খরচ দুই লাখ থেকে সাত লাখ টাকা, সিঙ্গাপুর ও আমেরিকায় প্রায় দুই কোটি এবং ভারত ও শ্রীলঙ্কায় ২০ থেকে ৩০ লাখ টাকা।
১৯৮২ সালে বাংলাদেশে আইপিজিএমআরে (বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়) প্রথম কিডনি ট্রান্সপ্ল্যান্ট শুরু হয়েছিল। এ হাসপাতাল ব্যবস্থাপনায় প্রতি বছর সরকারের কয়েক শ’ কোটি টাকা ব্যয় হয়। অথচ সেখানে বিগত ৩৪ বছরে মাত্র ৫১০টি কিডনি প্রতিস্থাপন হয়েছে।
ঢাকার শ্যামলীর সেন্টার ফর কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজির অধ্যাপক কামরুল ইসলাম একক চেষ্টায় সরকারি অনুদান ছাড়াই ২০০৭ থেকে ৯ বছরে সফলভাবে ৩৮০টি কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন। তিনি ২০১৬ সালে ৮৪ জন বিকল কিডনি রোগীর দেহে কিডনি প্রতিস্থাপন করেছেন। তার বেসরকারি হাসপাতালে কিডনি প্রতিস্থাপনে রোগীর ব্যয় গড়ে দুই লাখ টাকা। ডা: কামরুল প্রতি তিন মাস অন্তর বিনা ফিতে সব কিডনিগ্রহীতার স্বাস্থ্য পর্যালোচনা করেন।
১৭ বছরে বারডেম হাসপাতালে কিডনি প্রতিস্থাপন হয়েছে ১২৫ জনের, ১০ বছরে কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতালে ৩৯১, এ্যাপোলো হাসপাতালে ২১ জনের এবং বিগত ছয় বছরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে পাঁচজন ও গত চার বছরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মাত্র দু’জনের দেহে কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে।
বাংলাদেশে প্রতি বছর কমপক্ষে ৯ হাজার বিকল কিডনি রোগীর শরীরে অঙ্গ প্রতিস্থাপন প্রয়োজন। দুর্ভাগ্যবশত বাংলাদেশে ১০টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে প্রতি বছর মাত্র দুই শ’-এর মতো কিডনি প্রতিস্থাপন হয়। প্রয়োজন থাকা সত্ত্বেও এত কম কিডনি প্রতিস্থাপনের মূল কারণ, দেশে বিদ্যমান ১৯৯৯ সালের মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আইনের অসঙ্গতি ও সঙ্কীর্ণতা। দ্বিতীয়ত, জনসাধারণের অঙ্গদান সম্পর্কে অজ্ঞতা ও অহেতুক ভীতি। তৃতীয়ত, দানের মতো একটি মহৎ কাজে নাগরিকদের উৎসাহিত করার জন্য সরকারের প্রণোদনা ও প্রচারণা নেই।
বাংলাদেশ থেকে প্রতি সপ্তাহে ৮-১০ জন বিকল কিডনি রোগী ভারতে এবং প্রায় সমসংখ্যক রোগী অন্যান্য দেশে যান কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য। এতে বছরে ব্যয় হয় প্রায় ৩০০ কোটি টাকা।
কোনো সুস্থ মানুষের জীবদ্দশায় বা মরণোত্তর কোনো রোগাক্রান্ত ব্যক্তিকে অঙ্গ দান করা যে প্রত্যেক নাগরিকের মৌলিক অধিকার, তার স্বীকৃতি প্রদানে সরকারের শুধু অনীহা নয়, বরং ভুল আইন তৈরি করে জনগণের স্বাস্থ্যের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে।

মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন :
বৈশিষ্ট্য ও অসম্পূর্ণতা
জনগণের কল্যাণে মানবদেহে অন্যের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন বিধান করার উদ্দেশ্যে সৃষ্ট বিধানটি ১৩ এপ্রিল ১৯৯৯ আইনে পরিণত হয়। অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন ১৯৯৯ আইনের পরিধি অত্যন্ত সীমিত হওয়ায় রোগগ্রস্ত বৃহত্তর জনগোষ্ঠী সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বিপুলসংখ্যক রোগী প্রয়োজনীয় অঙ্গ প্রতিস্থাপন সুবিধা পাচ্ছেন না। আইনটি অসম্পূর্ণ বলে কিছু মধ্যস্বত্বভোগী দালাল শ্রেণীর ব্যক্তি সরল মানুষকে প্রতারণা করে আইনের সীমাবদ্ধতার সুযোগ নিয়ে ভিন্ন দেশে নিয়ে গিয়ে অঙ্গ কেনাবেচা করছে। মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ আইন ১৯৯৯-এর ১১টি ধারা আছে। দু’টি ধারা দেশে পর্যাপ্ত সংখ্যক কিডনি প্রতিস্থাপন না হওয়ার মূল কারণ। জীবিত ব্যক্তির অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান-সংক্রান্ত ৩ নম্বর ধারাটি সবচেয়ে বেশি জনস্বার্থবিরোধী।
‘সুস্থ ও সাধারণ জ্ঞানসম্পন্ন যেকোনো ব্যক্তি তাহার দেহে এমন কোনো অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যা বিযুক্তির কারণে তাহার স্বাভাবিক জীবনযাপনে ব্যাঘাত সৃষ্টির আশঙ্কা নাই, তাহার কোনো নিকট আত্মীয়ের দেহে সংযোজনের জন্য দান করিতে পারিবে।’
২(গ) ধারায় নিকট আত্মীয়ের সংজ্ঞায় বলা হয়েছেÑ ‘নিকট আত্মীয় অর্থ পুত্র, কন্যা, পিতা, মাতা, ভাই, বোন ও রক্ত সম্পর্কিত আপন চাচা, ফুফু, মামা, খালা ও স্বামী-স্ত্রী।’
৬ ধারায় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দাতা ও গ্রহীতার যোগ্যতা স্থির করা আছে। (১) : ‘মৃত দাতা ব্যক্তির ক্ষেত্রে তার বয়স দুই বৎসরের কম অথবা পঁয়ষট্টি বৎসরের ঊর্ধ্বে হবে না, জীবিত দাতা ব্যক্তির বয়স ১৮ বৎসরের ঊর্ধ্বে হতে হবে।’
(২) যে ব্যক্তির দেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন করা হইবে তাহার বয়স ‘দুই বৎসর হইতে সত্তর বৎসর বয়সসীমার মধ্যে হইতে হইবে, তবে পনের বৎসর হইতে পঞ্চাশ বৎসর পর্যন্ত বয়সসীমার ব্যক্তিরা অগ্রাধিকার লাভ করিবেন।’
৮ নম্বর ধারায় প্রত্যেক মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল, মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, পোস্ট গ্র্যাজুয়েট চিকিৎসা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট হাসপাতাল এবং গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত ও মরণাপন্ন রোগীর চিকিৎসা করা হয়, এমন চিকিৎসালয়ে প্রয়োজনীয় তথ্যাবলি সমন্বিত দাতা ও গ্রহীতার তথ্যাদি নথিভুক্ত রেজিস্টার করার নির্দেশ আছে। অথচ এসব বিশেষায়িত অঙ্গ প্রতিস্থাপন তদারকি করার জন্য কোনো কেন্দ্রীয় নিবন্ধন সংস্থার ব্যবস্থা রাখা হয়নি।
৯ নম্বর ধারায় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে বিদেশে দাতাকে নিয়ে গিয়ে কিডনি প্রতিস্থাপনের বিষয়ে নির্দেশনা নেই। আইনের অসম্পূর্ণতার কারণে দেশে অনাত্মীয় কিডনি সংগ্রহ বেআইনি। কিন্তু বাংলাদেশের নাগরিকের বিদেশে কিডনি বেচাকেনা নিষিদ্ধ নয়।
৯ নম্বর ধারা ভঙ্গকারীদের শাস্তির বিধান করা হয়েছে ১০ নম্বর ধারায়। আইনের বিধান লঙ্ঘনকারী বা লঙ্ঘনে সহায়তাকারী ব্যক্তি ও চিকিৎসক সর্বোচ্চ সাত বছর এবং অন্যূন তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ড অথবা তিন লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় প্রকারের দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন। চিকিৎসকদের ক্ষেত্রে তাহার রেজিস্ট্রেশন বাতিল হইবে।

প্রস্তাবিত সংস্কার ও সংশোধনী
সাধারণ মানুষকে প্রতারণা থেকে রক্ষা এবং বৃহৎ জনগোষ্ঠীর জন্য সংবিধান মোতাবেক অতিরিক্ত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রচলিত আইনটির সংস্কার ও সংশোধন প্রয়োজন। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ প্রতিস্থাপন একটি বিজ্ঞানস্বীকৃত জীবন রক্ষাকারী চিকিৎসাপদ্ধতি। অঙ্গ প্রতিস্থাপন জীবন রক্ষাকারী তো বটেই, এতে অভাবনীয় অর্থ সাশ্রয়ও হয়।
র. ১৮ বছর বা ততোধিক বয়সের বাংলাদেশের যেকোনো সচেতন সুস্থ নাগরিক, যিনি বুদ্ধি-বিবেচনায় অঙ্গপ্রত্যঙ্গ দান বিষয়ে যুক্তিসঙ্গত বিবেচনা দিতে সক্ষম তিনিই অঙ্গদানের অধিকার রাখেন। তবে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সরাসরি অঙ্গদানে সম্মতি গ্রহণযোগ্য হবে না। যদি না তার অভিভাবক ও নিকট আত্মীয়স্বজন স্বার্থবিবর্জিত যুক্তিসঙ্গত বিবেচনায় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ব্যক্তির অঙ্গদানের সম্মতি দেন।
অঙ্গদান প্রত্যেক নাগরিকের মানবিক ও মৌলিক অধিকার। নিজের অসুবিধা না করে দু’টি অঙ্গের একটি দান করতে পারেন। এটা তার নাগরিক অধিকার। এরূপ দানকে উৎসাহিত করতে হবে। একাধিক পদ্ধতিতে অঙ্গদাতাকে সম্মান ও সম্মানী দেবে রাষ্ট্র। ব্যক্তিগত পর্যায়ে অঙ্গ বেচাকেনা অবৈধ ও নিষিদ্ধ থাকবে।
রর. ৩ ধারার ‘নিকটাত্মীয়ের’ স্থলে ‘প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ নাগরিক’ সংযোজন করা প্রয়োজন।
৬ (১) ধারায় দাতার বয়সসীমা ৮০ বছর পর্যন্ত সংশোধন প্রয়োজন। অঙ্গগ্রহীতার বয়স মাতৃগর্ভস্থ নবজাতক থেকে ৯০ বছর পর্যন্ত বাড়ানো যুক্তিসঙ্গত। তবে কমবয়সীরা অগ্রাধিকার পাবেন।
মেডিক্যাল বোর্ড সংক্রান্ত ৭ ধারায় অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও সহকারী অধ্যাপকের সাথে ১০ বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন যেকোনো বিভাগের বিশেষজ্ঞদের জেলাপর্যায়ে মেডিক্যাল বোর্ডে সম্পৃক্ত করা হবে সময়োপযোগী সংস্কার।
৮ নম্বর ধারায় অঙ্গ প্রতিস্থাপন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের তালিকায় বাংলাদেশের সকল জেলা হাসপাতাল এবং উন্নত বেসরকারি হাসপাতালগুলো অন্তর্ভুক্ত করা প্রয়োজন। তবে অঙ্গ প্রতিস্থাপন সক্ষম সকল হাসপাতালকে অবশ্যই কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের নিবন্ধিত হতে হবে।
ররর. দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারণ মানুষকে প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা এবং অনৈতিকভাবে কিডনি বেচাকেনা স্থায়ীভাবে বন্ধ করার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ সংক্রান্ত একটি অনুচ্ছেদ মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন আইনের ৮ ধারায় যুক্ত করা অত্যাবশ্যক।

কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ
মানবদেহে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ সংযোজন আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিতকরণ, জীবিত বা মৃতব্যক্তির অঙ্গদান, কোনো জীবিত ব্যক্তির অকেজো অংশের বিচ্ছেদ করে নতুন অঙ্গ সংযোজন সম্পর্কিত আইনের পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভূত সমস্যা নিরসন এবং সব অঙ্গদাতা ও গ্রহীতার পূর্ণ তথ্য সঠিকভাবে সংরক্ষণের জন্য কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ সৃষ্টি অত্যাবশ্যক। এই কর্তৃপক্ষের সভাপতি ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হবেন একজন অবসরপ্রাপ্ত মেডিক্যাল শিক্ষক বা অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি, ভোক্তা সংগঠনের প্রধান কিংবা খ্যাতনামা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অথবা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সচিব। তিনি চার বছরের জন্য নিযুক্ত হবেন। তিনি নির্ধারিত বেতনভাতা ও গাড়ির সুবিধা পাবেন। তার একটি ছোট অফিস, লাইব্রেরি ও আধুনিক ল্যাবরেটরি থাকবে, যেখানে সব দাতা ও গ্রহীতার সব তথ্য সংরক্ষিত থাকবে। ল্যাবরেটরিতে সর্বপ্রকার পরীক্ষা ও টিস্যু টাইপিং ব্যবস্থার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিজ্ঞানী ও টেকনিশিয়ান থাকবেন।
চেয়ারপারসনকে সহায়তা করার জন্য ৯-১৩ সদস্যের একটি অবৈতনিক নির্বাহী পরিষদ থাকবে। খ্যাতিমান চিকিৎসক, মুক্তিযোদ্ধা, অবসরপ্রাপ্ত বিচারক (জেলা জজের নি¤œপদের নয়) সমাজসেবী, সাংবাদিক, আইনবিশারদ, সুশীলসমাজের প্রতিনিধি, এনজিওকর্মী এবং একজন সংসদ সদস্য দ্বারা অবৈতনিক নির্বাহী পরিষদ গঠিত হবে। নির্বাহী পরিষদে অন্যূন চারজন নারী সদস্য থাকবেন।
ওই অফিসের যাবতীয় খরচ এবং অঙ্গদাতাকে পুরস্কৃত করার জন্য, সম্মানী ভাতার জন্য, প্রয়োজনীয় তহবিল, জাতীয় স্বাস্থ্যের উন্নতিকল্পে সরকারি কোষাগার থেকে বরাদ্দ হবে। অত্র কর্তৃপক্ষকে করপোরেট সংস্থা, কোম্পানি ও ব্যক্তির দান, গ্রহণ এবং লটারি প্রভৃতি পদ্ধতির মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের অধিকার দেয়া বাঞ্ছনীয় হবে। অঙ্গদানে জনসাধারণকে উৎসাহিত করার জন্য কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সভার আয়োজন করবে, পত্রপত্রিকায় তথ্য প্রকাশ করবে এবং বিভিন্নভাবে জনগণকে অঙ্গদানে উদ্বুদ্ধ করবে।
কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ সব অঙ্গগ্রহীতার কাছ থেকে তার সামাজিক শ্রেণীগত অবস্থানের ভিত্তিতে অঙ্গ প্রতিপস্থাপন ব্যবস্থাপনার জন্য ফি ধার্য করতে পারবে। অঙ্গদাতা তার শারীরিক সুস্থতা ও পুষ্টির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সম্মান ও নগদ অর্থ পাবেন এবং সারা জীবন যেকোনো সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা অধিকার অর্জন করবেন। নগদ অর্থের পরিমাণ পাঁচ লাখ টাকার বেশি হবে না। কোনো অঙ্গদাতা সরকারি সম্মানী ভাতা গ্রহণ না করে পুরো বা আংশিক অর্থ কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের তহবিলে দান করতে পারবেন। কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের তহবিলে সব দান আয়করমুক্ত হবে। অঙ্গগ্রহীতার নিবন্ধন ফি এবং অঙ্গদাতার সম্মানীভাতা কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিষদ স্থির করবে। নিবন্ধিত হাসপাতালে অঙ্গ প্রতিস্থাপন ও বিভিন্ন ল্যাবরেটরি পরীক্ষার দর কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ স্থির করে দেবে।

কর্তৃপক্ষের কর্মপরিধি
১. কর্তৃপক্ষের কার্যাবলি পরিচালনা করার জন্য কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় বিধিমালা তৈরি করে প্রয়োগ করতে পারবেন। অপ্রয়োজনীয় বিধি বাতিলও করতে পারবেন। ভবিষ্যতে প্রয়োজন হলে এ আইন সংশোধনের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সরকারকে জ্ঞাত করবেন।
২. অঙ্গপ্রত্যঙ্গ গ্রহণে আগ্রহী রোগাক্রান্ত ব্যক্তি নির্ধারিত ফরমে কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ এবং নিজের পছন্দমতো নিবন্ধিত হাসপাতালে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে নাম তালিকাভুক্ত করবেন।
৩. অঙ্গদানে আগ্রহী ব্যক্তি কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ নিজে উপস্থিত হয়ে নিজের নাম, ঠিকানা, রক্তের গ্রুপ, পেশা, আসক্তি-সংক্রান্ত তথ্য প্রভৃতি লিপিবদ্ধ করাবেন।
৪. অঙ্গ প্রতিস্থাপন উপযোগী সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে নিবন্ধিত করবেন যেখানে অঙ্গদাতা ও গ্রহীতার সকল প্রকার তথ্য সংরক্ষিত থাকবে।
৫. নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান : অঙ্গ প্রতিস্থাপনে আগ্রহী জেনারেল বা বিশেষায়িত হাসপাতাল যেখানে বড় সার্জারির উপযোগী অপারেশন থিয়েটার, পর্যাপ্ত অ্যানেসথেসিয়া সুবিধা, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিসমৃদ্ধ আইসিইউ, ডায়াগনস্টিক প্যাথলজি ও টিস্যু-টাইপিং ল্যাবরেটরি, ডায়াগনস্টিক রেডিওলজি ও আলট্রাসনোগ্রাফি ব্যবস্থা এবং সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের ন্যূনপক্ষে সার্বক্ষণিক দু’জন করে বিশেষজ্ঞ শল্যবিশারদ সার্জন, ইউরোলজিস্ট ও অ্যানেসথেটিস্ট, সার্বক্ষণিক মেডিসিন ও কার্ডিওলজি বিশেষজ্ঞ আছেন, সেই হাসপাতালগুলো অঙ্গ প্রতিস্থাপন সার্জিক্যাল কেন্দ্র হিসেবে নিবন্ধিত হতে পারবে। সব প্রতিস্থাপন সার্জারির জন্য অঙ্গদানকারী ও অঙ্গগ্রহীতা ব্যক্তির পুরো ডাকনামসমেত পুরো নাম-ঠিকানা এবং স্বাস্থ্যসংক্রান্ত পূর্ণ বিবরণ সংরক্ষণ করার নিশ্চয়তা নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের থাকবে।
নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান ত্রৈমাসিক রিপোর্ট স্বাস্থ্য অধিদফতর ও অঙ্গদান কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ জমা দেবে। নিবন্ধিত হাসপাতালগুলোর তদারকির দায়িত্ব কেন্দ্রীয় অঙ্গ নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের ওপর বর্তাবে।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ট্রাস্টি, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র
ডা. মুহিব উল্লাহ খোন্দকার
Source: http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/213114
গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিক্যাল কলেজের উপাধ্যক্ষ

Pages: 1 2 [3] 4