Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - nafees_research

Pages: 1 ... 13 14 [15] 16 17 ... 19
211
বায়ুদূষণে প্রতিবছর মারা যাচ্ছে ৭০ লাখ মানুষ
বিশ্বের কিছু এলাকায় বায়ুদূষণের মাত্রা মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে। যার প্রভাবে বিশ্বে প্রতি ১০ জন মানুষের মধ্যে নয়জন বিপজ্জনক মাত্রার দূষিত বাতাসে শ্বাস নিচ্ছে। আর প্রতিবছর বায়ুদূষণজনিত কারণে বিশ্বজুড়ে প্রায় ৭০ লাখ মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিইএইচও)।

বুধবার (২মে) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রকাশিত নতুন এক রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে। সংস্থাটি বলছে, এসব মৃত্যুর ৯০ শতাংশ ঘটে থাকে দরিদ্র দেশগুলোতে বিশেষত এশিয়া ও আফ্রিকাতে।

২০১৬ সাল থেকে বিশ্বের এক হাজারেরও বেশি শহরের বায়ুদূষণ মাত্রা পর্যবেক্ষণ শুরু করে ডব্লিউএইচও। প্রতিনিয়ত সেই সংখ্যা বাড়তে থাকে। বর্তমানে পর্যবেক্ষণে রাখা শহরের সংখ্যা চার হাজার তিনশ। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলো থেকে পর্যবেক্ষণে নেওয়া শহরের সংখ্যা বেড়েছে। সংস্থাটি মূলত হৃদরোগ, ফুসফুসের ক্যান্সার ও স্ট্রোকের মতো রোগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দূষণকারী উপাদানগুলোকে প্রাধান্য দিয়ে বায়ু পর্যবেক্ষণ করে। নতুন প্রতিবেদনটি তৈরির জন্য বিশ্বের ১০৮টি দেশের চার হাজার ৩০০ শহরের বায়ুর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

ডব্লিউএইচও’র জনস্বাস্থ্য বিষয়ক প্রধান ডা. মারিয়া নেইরার মতে, বেইজিং, দিল্লি, জাকার্তার মতো বিশ্বের অনেক মেগাসিটির বাতাস তাদের সংস্থার নির্ধারিত নিরাপদ মাত্রার চেয়ে পাঁচগুণ বেশি দূষিত।

Source: http://bonikbarta.net/bangla/news/2018-05-02/156434/%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%82%E0%A6%B7%E0%A6%A3%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A6%9B%E0%A6%B0-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE-%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A7%AD%E0%A7%A6-%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%96-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B7/

212
You will be happy to know that some renowned scientists have ancestral relationship with Bangladesh. Amongst them, following are the few:

PART-1:

1. Prasanta Chandra Mahalanobis: Prasanta Chandra Mahalanobis OBE, FNA,FASc, FRS (29 June 1893 – 28 June 1972) was an Indian scientist and applied statistician. He is best remembered for the Mahalanobis distance, a statistical measure, and for being one of the members of the first Planning Commission of India. He made pioneering studies in anthropometry in India. He founded the Indian Statistical Institute, and contributed to the design of large-scale sample surveys. Mahalanobis belonged to a family of Bengali landed gentry who lived in Bikrampur in Bangladesh.

Wiki link: https://en.wikipedia.org/wiki/Prasanta_Chandra_Mahalanobis

2. Kedareswar Banerjee: Kedareswar Banerjee (15 September 1900 – 30 April 1975) was an X-ray crystallographer and director of the Indian Association for the Cultivation of Science, Kolkata. Early in his career he determined the structures of naphthalene and anthracene. In 1931, he worked with Sir William Henry Bragg and developed one of the first direct methods of crystal structure determination. He was Professor of Physics at the Indian Association for the Cultivation of Science from 1943 to 1952 and Director of the Association from 1959 until his retirement in 1965. Between 1952 and 1959 he was Head of the Department of Physics at Allahabad University. His interests in crystallography were widespread and, with his death, India has lost a renowned teacher. K. Banerjee joined the research group of Sir C. V. Raman at the Indian Association for the Cultivation of Science (IACS), Calcutta, a premier Indian research institute of India. He worked in various institutions including IACS, the India Meteorological Department, University of Dhaka and Allahabad University and finally retired as the Director of IACS, Calcutta in 1965. Prof. Banerjee explained some points of crystal research to Homi J. Bhabha (21 Dec 1956) also.

He was born in Bengali Brahmin family on 15 September 1900 in Vikrampur Dhaka. He was educated at Jubilee School, Dhaka and at the University of Calcutta, for his undergraduate, postgraduate, and doctoral degrees in science. His thesis was " Some Problems in Structures of Solid and Liquids" (Cl. V. Raman). He was a reader in physics at the University of Dhaka (1934–43), and a professor of physics at the Indian Association for the Cultivation of Science, in Calcutta (1943–62), a professor of physics at Allahabad University (1952–69), and a director of the Indian Association for the Cultivation of Science. He died on 30 April 1975 at Barasat, a suburb of Calcutta.

Wiki link: https://en.wikipedia.org/wiki/Kedareswar_Banerjee

3. Jagadish Chandra Bose: Sir Jagadish Chandra Bose, CSI, CIE, FRS ( 30 November 1858 – 23 November 1937),was a polymath, physicist, biologist, biophysicist, botanist and archaeologist, and an early writer of science fiction. Living in British India, he pioneered the investigation of radio and microwave optics, made significant contributions to plant science, and laid the foundations of experimental science in the Indian subcontinent.IEEE named him one of the fathers of radio science. Bose is considered the father of Bengali science fiction, and also invented the crescograph, a device for measuring the growth of plants. A crater on the moon has been named in his honour.

Sir Jagadish Chandra Bose was born in a Bengali Kayastha family of Bikrampur of Bangladesh.

Wiki link: https://en.wikipedia.org/wiki/Jagadish_Chandra_Bose


4.  Meghnad Saha: Meghnad Saha FRS (6 October 1893 – 16 February 1956) was an Indian astrophysicist best known for his development of the Saha ionization equation, used to describe chemical and physical conditions in stars. Saha was the first scientist to relate a star's spectrum to its temperature, developing thermal ionization equations that have been foundational in the fields of astrophysics and astrochemistry. He was repeatedly and unsuccessfully nominated for the Nobel Prize in Physics. Saha was also politically active and was elected in 1952 to India's parliament.

Meghnad Saha was born in 1893 in Shaoratoli, a village near Dhaka, in the erstwhile Bengal Presidency of British India (in present-day Bangladesh). Son of Jagannath Saha, Meghnad belonged to a poor family and struggled to rise in life. During his early schooling he was forced to leave Dhaka Collegiate School because he participated in the Swadeshi movement.[4] His Indian School Certificate was earned from Dhaka College.

Wiki link: https://en.wikipedia.org/wiki/Meghnad_Saha

213
Using data science to improve public policy (MIT News)

100 researchers and students from MIT and six other universities gathered on campus this April for the first weekend-long MIT Policy Hackathon. This interdisciplinary event teamed data science, engineering, and policy students to explore solutions to real societal challenges submitted by sponsor organizations.

The hackathon, subtitled “Data to Decisions,” was organized and run by students from MIT’s Institute for Data, Systems, and Society (IDSS). Participants used datasets provided by nonprofit, education, and government institutions to pitch solutions to complex challenges in cybersecurity, health, energy and climate, transportation, and the future of work. A panel of judges evaluated the pitches and read final policy proposals.

“It’s a different type of hackathon in that it is focused on public policy outcomes,” says Amy Umaretiya, a student organizer with IDSS’s Master’s program in Technology and Policy (TPP). “We have these concrete challenges put forth by organizations that have data analytics needs for social good that aren’t being met.”

“We wanted to create a hackathon where interdisciplinary teams tackle complex societal problems,” explains Marco Miotti, a doctoral student at IDSS. “The challenges were structured so you can’t solve them without both data and policy expertise.”

Data and diaper need

The winning team, called NappyTime, worked on the health challenge with sponsors from Yale’s Mental health Outreach for MotherS (MOMS) Partnership and the National Diaper Bank Network (NDBN). The problem: lack of a sufficient supply of diapers to keep babies and toddlers clean, dry, and healthy. Diaper need affects one in three low- and middle-income families in the U.S., and can have a significant impact on the physical, mental, and economic well-being of both children and parents.

“The crux of this proposal was the need for more data on diaper need, and quantifying the benefits of addressing it,” says Lawrence Baker, a TPP student on the winning team. “We wanted to propose policies that would be inexpensive for Connecticut, easy to implement, and would allow the collection of more data.”

Lori Wallace, a postdoctoral associate with MOMS, mentored the challenge. She was joined by Lynn Comer of NDBN, who was also a judge. Both remarked on the applicability and ingenuity of the winning proposal, which is under a nondisclosure agreement. “By focusing on cost-effective means to embed the provision of diapers into our childcare system, the hackathon participants presented actionable solutions to this real life issue,” they said.

Hackathon judge Frank Field, a senior research engineer with IDSS who is associate director of TPP, was also impressed with the team’s proposal and presentation, both during their pitch and the follow-up Q&A session. Says Field: “Their proposal went right at the problem. It was pitched in the form of a staged implementation, which cleverly skirts some of the classic impediments to policy innovations by targeting some populations immediately while centering on issues whose resolution could inform and refine a wider deployment."

Real data, real problems

Two local challenges were sponsored by organizations within the Massachusetts government. The first, in transportation, looked for solutions to congestion on local highways and train lines. Transportation proposals considered the impact of autonomous vehicles and suggested ideas ranging from shielded bike paths to establishing a car-free area within Kendall Square.

Meanwhile, the energy and climate challenge asked teams to help Boston meet its goal of carbon neutrality by 2050. Climate hackers worked with green building data that had previously been locked up in PDF format. Hackathon organizers partnered with WattzOn, a software company working in utility data, to extract the information into a usable dataset.

“It was great that the problem was drawn from the real world, that we had real data, and that our mentors had working knowledge of relevant policies. It really showed us how to work through a policy problem with various administrative constraints, interfering regulations, and incomplete data,” says energy and climate hacker Zhen Dai, a PhD student researching the science and policy of solar geoengineering at Harvard University.

The cybersecurity challenge, sponsored by Boston University Law School’s Technology and Cyberlaw Clinic, called upon students to examine the multitude of legislative and policy approaches that U.S. states use to respond to cybersecurity breaches such as those experienced by Equifax and Yahoo. Teams were asked to consolidate and compare these approaches across states, and then propose ways to identify and implement some of the more effective policies.

“It’s important to have people who can think at the intersection of computer science and policy,” says Nathaniel Fruchter, a hackathon organizer and TPP student. “The breach dataset provided to the hackers has been largely unexplored by academia or industry, so we were really excited to see what new perspective these teams could bring.”

The future of work challenge came from the MIT Initiative on the Digital Economy and Wonolo, an online labor market focused on local blue collar jobs. Hackers used Wonolo’s job data to explore the design of policies for ensuring a social safety net for workers in the gig economy.

“It is very satisfying to use the skills we normally only apply to narrowly focused, high-level scientific problems in the lab instead on a broad range of social issues that impact the daily life of many community members,” says hacker Ryan Badman, a Cornell University PhD student in physics.

To student organizer Christoph Tries, the hackathon demonstrated the applicability of data science tools to addressing many complex societal challenges — making IDSS an ideal host for the event. “We are lucky to have IDSS at MIT. Other students are more siloed at their universities and don’t have that interdisciplinary focus. There are a lot of folks studying data science who are looking for ways to apply their knowledge to public policy and connect with people who actively need their help.”

Source: http://news.mit.edu/2018/using-data-science-improve-public-policy-hackathon-0423

214
CeBIT is the largest and most internationally representative computer expo. The trade fair is held each year on the Hanover fairground, the world's largest fairground, in Hanover, Germany.

CeBIT is a German language acronym for Centrum für Büroautomation, Informationstechnologie und Telekommunikation, which translates as "Center for Office Automation, Information Technology and Telecommunication".

For more information: https://www.cebit.de/en/about-cebit/

215
The Creative Classroom Project of Harvard Graduate School of Education (Project Zero)

The Creative Classroom Project was a collaboration between Project Zero and Disney Worldwide Outreach to produce materials that help teachers explore and understand:

The role of creativity and innovation in teaching and learning.
The importance of developing classroom and school environments that can bring out the best in teachers and students.
Methods for making classrooms more engaging places.
In the development of the materials, we drew on the expertise and experience of past American Teacher Award (ATA) Honorees to better understand their teaching practices and their own professional development as creative and innovative professionals. The Creative Classroom materials are not focused on the development of students' creativity per se, but on the development of environments in which students' and teachers' creativity, understanding, and thinking can flourish. Similarly, the focus is not on the fun and novelty of individual lessons but on nurturing a deep engagement in the learning process that requires students to invest and extend themselves.

In the project, we take the stance that creative teaching must build on a foundation of solid pedagogy. However, creative teaching is not merely a higher plateau of practice. Creative teaching requires a fundamental move out of a safe zone for the teacher. Therefore, creative teaching is not necessarily the next logical step beyond good teaching practices. We see creative teaching as more generative and responsive teaching rather than just more effective teaching. In the current climate of high-stakes testing and mandated curriculum, creative and innovating teaching is perhaps more important than ever as it keeps classrooms energetic places of learning.

The Creative Classroom Videotapes and Guides are frequently used in pre-service teacher training, graduate schools, and onsite professional development. These materials provide rich examples of what creative and innovative teaching can look like across subjects, grade, and school settings. These materials were distributed by Disney Worldwide Outreach and are in the public domain, with permission to copy and use the materials with appropriate attribution fully granted. Please contact Disney Worldwide Outreach directly at learning@disneyhand.com or via their websitehttp://disney.go.com/disneyhand/learning to inquire about these materials or to share with them how you have used them.

The Creative Classroom Project (1999-2004) was a collaboration between Project Zero and the Disney Worldwide Outreach to produce tools and knowledge that will inform and support creativity in teaching.

For more information, you may visit the website as: http://www.pz.harvard.edu/projects/the-creative-classroom-project

216
Thanks for sharing.

217
ফেসবুক ছোট উদ্যোগগুলোকে আটকে দিচ্ছে
আরেকটা ফেসবুক বা এর প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরির কথা ভাবছেন? ফেসবুক কখনোই তা হতে দেবে না। ছলে-বলে-কৌশলে আপনাকে আটকে দেবেই। টাকার জোরে কিনে নেবে, না হয় নকল করবে। কী করতে পারবেন আপনি?

হোয়াটসঅ্যাপের কথাই ধরুন। হোয়াটসঅ্যাপ সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন। ২০০৯ সালে জ্যান কউম ও ব্রায়ান অ্যাক্টনের হাত ধরে যাত্রা শুরু করেছিল হোয়াটসঅ্যাপ। বার্তা আদান–প্রদানের ক্ষেত্রে ফেসবুকের চেয়ে এগিয়ে যাওয়ার সব সুযোগ ছিল। কিন্তু ২০১৪ সালে ১ হাজার ৯০০ কোটি মার্কিন ডলারে হোয়াটসঅ্যাপকে অধিগ্রহণ করে নেয় ফেসবুক। মাত্র চার বছরের মধ্যেই হোয়াটসঅ্যাপের সঙ্গে ফেসবুকের ঝামেলার সুর শোনা যাচ্ছে। বিবিসি বলছে, নিজের প্রতিষ্ঠা করা হোয়াটসঅ্যাপ থেকে সরে যেতে হচ্ছে এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যান কউমকে। তিনি ফেসবুকে সে ঘোষণা দিয়েছেন। ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ সেখানে এক মন্তব্যে কউমের প্রশংসা করেছেন। ব্যস, এখানেই একজন উদ্যোক্তার বিদায়! অবশ্য এর আগেই ফেসবুকের অধীনে থাকা হোয়াটসঅ্যাপ ছেড়েছেন আরেক সহপ্রতিষ্ঠাতা অ্যাক্টন। এখন তাঁরা ফেসবুকবিরোধী প্রচার চালাচ্ছেন।

এ তো গেল ফেসবুকের অধীনে যাওয়া কোম্পানির চিত্র; কিন্তু এর বাইরে থাকা উদ্যোগগুলোর হাল কী? মোবাইল লোকেশনভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফোরস্কয়ারের সহপ্রতিষ্ঠাতা নাভিন সালভাদুরি মনে করেন, ২০১০ সালে তাঁর কোম্পানিসহ সামাজিক যোগাযোগের কয়েকটি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান, যেমন: টুইটার, টাম্বলার, পাথের পক্ষে ফেসবুকের সমকক্ষ হয়ে ওঠা সম্ভব ছিল। কিন্তু ফেসবুকের পরিকল্পনা ছিল ভিন্ন। ওই বছরেই ফেসবুক ‘চেক ইন’ নামের একটি ফিচার আনল, যাতে কোনো স্থানে গেলে তা চিহ্নিত করা যায়। এটি ছিল ফোরস্কয়ার অ্যাপের প্রধান ফিচার, যা সরাসরি নকল করে বসল ফেসবুক।

কী করার ছিল এই উদ্যোক্তাদের? এর জবাবে সালভাদুরি ফেসবুকবিরোধী একটি জোটে নাম লেখালেন। তিনি পাথ, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারে থাকা বন্ধুদের সঙ্গে টিকে থাকার কৌশল নিয়ে আলোচনা করলেন। এই উদ্যোগগুলো সরাসরি ফেসবুকের হুমকির মুখে ছিল। এসব উদ্যোগের সব মূল ফিচারই নকল করে ফেসবুকে আসার হুমকি ছিল।

সালভাদুরি বলেন, ‘এটা খুব সাধারণ জ্ঞান। ফেসবুক তখন কোনো প্রতিষ্ঠানকে বলত যে আমাদের সঙ্গে যোগ দাও, তা না হলে আমরা তোমার নকল করে ছেড়ে দেব।’

সালভাদুরির মতে, উন্মুক্ত ইন্টারনেটের বদলে দেয়ালঘেরা বাগান গড়ে তুলেছিল ফেসবুক। যাকে তারা পছন্দ করত না, তার ক্ষতি করত। যা লাখো মানুষের কাছে পৌঁছাতে সক্ষম—এমন বিষয়গুলোকে তারা নিজেদের করে নিত। এর বিপক্ষে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিলেন সালভাদুরি ও ফেসবুকবিরোধী জোটের উদ্যোক্তারা।

সাম্প্রতিক কালে ফেসবুকের নকলের সবচেয়ে বেশি শিকার হয়েছে স্ন্যাপচ্যাট। স্ন্যাপচ্যাটের স্টোরিজ ফিচারটি এর উদাহরণ হতে পারে। অনেক দিন ধরেই স্ন্যাপচ্যাটকে বাগে আনার চেষ্টা করেছেন জাকারবার্গ। ২০১৩ সালে প্রায় ৩০০ কোটি ডলার দিয়ে স্ন্যাপচ্যাট কিনতে চেয়েছিল ফেসবুক। কিন্তু মার্ক জাকারবার্গের কাছে নিজেদের বিক্রি করতে রাজি হননি স্ন্যাপচ্যাটের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ইভান স্পিগেল। বরং আকর্ষণীয় সব ফিচারে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফেলেন ফেসবুককে। এরপরই শুরু হয় স্ন্যাপচ্যাটের নানা বিষয় নকল করার কাজ।

উইয়ার্ড ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেসবুকবিরোধী জোট গড়েও খুব বেশি দূর এগোনো যায়নি। ২০১২ সালেই মাত্র ১০০ কোটি মার্কিন ডলারে ইনস্টাগ্রামকে কিনে নেয় ফেসবুক। পরেই বছরেই ১১০ কোটি মার্কিন ডলারে টাম্বলারকে কিনে নেয় ইয়াহু। পাথের জনপ্রিয়তায় ধস নামে এবং পরে বিক্রি হয়ে যায়। ফোরস্কয়ার স্বাধীন থাকলেও এর অ্যাপটি দুভাগ করে নতুন পরিকল্পনা নিয়ে কোনোরকমভাবে এগিয়ে চলেছে।

২০১২ সালে সালভাদুরি ফোরস্কয়ার ছেড়ে দেন। তাঁর প্রতিষ্ঠানের খুঁড়িয়ে চলার পেছনে কতগুলো কারণের কথা বলেন তিনি। তাঁর মতে, আগে মানুষ নিজের অবস্থানের কথা জানাতে কুণ্ঠিত ছিল না। বিভিন্ন ইন্টারনেট পণ্য তৈরির বিষয়টি উপভোগ্য ছিল। কিন্তু এখন তা কঠিন হয়ে গেছে। কারণ, এখন বড় খেলোয়াড়েরা এখন আরও বড় হয়ে উঠেছে।

অবশ্য, ফেসবুককে এখন বেশ ঝড়ঝাপটা সামলাতে হচ্ছে। বিশেষ করে কেমব্রিজ অ্যানালাইটিকা কেলেঙ্কারির পর। সারা পৃথিবীতে ফেসবুকের যে বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, সে ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমটির সহপ্রতিষ্ঠাতা ঠিক স্বস্তিতে নেই। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কর্তৃক ফেসবুকের তথ্য ব্যবহার নিয়ে যে কেলেঙ্কারি ঘটেছে, তার ব্যাপারে মার্ক জাকারবার্গ দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শিবিরের পক্ষে কাজ করা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ফেসবুক ব্যবহারকারী ও তাঁদের বন্ধুদের তথ্যভান্ডারে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, তাদের ভুল বুঝিয়ে গবেষণার নামে তারা এসব তথ্যের নাগাল পায়। তারা দাবি করেছিল, এসব তথ্য শুধু গবেষণার কাজে লাগানো হবে। এতে মানুষের নাম, অবস্থান, লিঙ্গ, তাদের পছন্দ-অপছন্দের তথ্য ছিল। এ ঘটনা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারি হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছে।

এ ঘটনার পর প্রাইভেসি বিষয়ে ফেসবুকের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করছে, ফেসবুক অনেক বিশাল ও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে ‘আস্থার সংকট’ তৈরি হয়েছে ব্যবহারকারীদের মনে। বিভিন্ন মিডিয়া ফেসবুকে তাদের কনটেন্ট ঠিকমতো দেখানো হচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলছেন। তবে সবচেয়ে বড় অভিযোগ করছেন সিলিকন ভ্যালির উদ্যোক্তারা। তাঁরা অভিযোগ করছেন, ফেসবুকের আগ্রাসী পরিকল্পনা উদ্ভাবনকে বাধাগ্রস্ত করছে।

২০১২ সাল থেকে যেসব সামাজিক যোগাযোগের অ্যাপ জনপ্রিয় হওয়া শুরু করছিল, তা থেকেই নকল করার অভিযোগ রয়েছে ফেসবুকের বিরুদ্ধে। এরপর তো ইনস্টাগ্রাম কিনে নেওয়া বা হোয়াটসঅ্যাপকে অধিগ্রহণ করার বিষয়টি সামনে এল। ৩০০ কোটি মার্কিন ডলারে স্ন্যাপকে কিনতে চাইলেও তা সম্ভব হয়নি। কিন্তু কমপক্ষে ১০ বার এর মূল ফিচারগুলো নকল করেছে ফেসবুক। এমনকি কিশোরদের উপযোগী অ্যাপ টিবিএইচকেও ছাড় দেয়নি।

ফেসবুক তার সম্ভাব্য শত্রুর খোঁজ ঠিকই রাখে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কোন অ্যাপ ফেসবুকের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে বা কোন অ্যাপকে কিনে নিতে হবে, তা ঠিক করার একটি উপায় ফেসবুকের হাতেই আছে। ২০১৩ সালে ফেসবুক অনাভো নামের একটি ইসরায়েলের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান কিনেছিল। ওই উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটি এমন একটি অ্যাপ তৈরি করেছে, যা মোবাইল তথ্য ব্যবহার পরিমাপের সুযোগ দেয়। ফেসবুক অনাভোকে কেনার পর ওই লাখো ব্যবহারকারীর তথ্য বিশ্লেষণ করে কোন অ্যাপ জনপ্রিয় হচ্ছে, শুরুতেই তার একটি ধারণা পায় ফেসবুক। অনাভোর তথ্য-উপাত্ত দেখেই ফেসবুক কর্তৃপক্ষ হোয়াটসঅ্যাপসহ লাইভ ভিডিও স্ট্রিমিং সেবা পেরিস্কোপ ও মিরাক্যাট কেনার সিদ্ধান্ত নেয়।

অবশ্য, ফেসবুককে একাধারে দোষারোপ করা ঠিক নয়। সিলিকন ভ্যালির সব বড় প্রতিষ্ঠান ছোট ছোট উদ্যোগকে গেলার জন্য বসে আছে। আমাজন আর গুগলের কথা না বললেই নয়। তবে লক্ষ্য নির্ধারণের গতিতে ফেসবুকের ধারেকাছে নেই তারা। ফেসবুকের অর্থ খরচের ইচ্ছা ও প্রকাশ্যে নকলের ক্ষেত্রে অন্যরা পিছিয়েই বলা চলে।

প্রযুক্তি খাতের পর্যবেক্ষকেরা মনে করেন, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করছে তাদের কেউ না কেউ কিনে নেবে। এ ছাড়া ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিনিয়োগকারীরা আর সামাজিক যোগাযোগের খাতের কোনো উদ্যোগে বিনিয়োগ করতে উৎসাহী নন। কারণ, আর কোনো হোয়াটসঅ্যাপ তৈরির সম্ভাবনা কম। আর কেউ মাথা তুলে দাঁড়ালেই ফেসবুক হয় তাকে কিনে নেবে বা তাকে টিকতে দেবে না।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিবি ইনসাইটসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সাল থেকেই ধীরে ধীরে ইন্টারনেট ও মোবাইল খাতের সামাজিক যোগাযোগের উদ্যোগগুলোতে বিনিয়োগ কমছে। কিছু কিছু উদ্যোক্তা মনে করেন, ফেসবুকের কাছে বিক্রি হওয়া তাদের অবশ্যম্ভাবী।

ফেসবুকের সাবেক কর্মী জোশ লি এ বিষয়ে টুইটে কৌতুক করে বলেছেন, কারও দাতব্য তহবিল করা উচিত যাতে উদ্যোক্তারা ফেসবুকের অফার ফিরিয়ে দেন।

লির মতে, বিভিন্ন উদ্যোক্তা নতুন নতুন উদ্যোগ তৈরি করলে মানুষ বিভিন্ন ধরনের সেবা পাবে যা প্রযুক্তি খাতে নতুন সম্ভাবনা তৈরি করবে। তা না হলে উদ্ভাবনের পথ রুদ্ধ হয়ে যাবে। এ ক্ষেত্রে স্ন্যাপ দারুণ উদাহরণ হতে পারে। এতে ভুয়া খবরের প্রাধান্য নেই কিংবা লাইক দিয়ে কনটেন্টের স্থান নির্ধারণ হয় না। নতুন চিন্তার মূল্য বোঝাতে পারে এটা।

ফেসবুকের বেড়ে চলার যে প্রত্যাশা তাতে এ ধরনের বৈচিত্র্য কি আশা করা যায়? ফেসবুক এখন খবর, ভিডিও, ভারচুয়াল রিয়্যালিটি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, পেমেন্ট, গ্রাহক সেবা, ই-কমার্স, ড্রোন, ইন্টারনেট সেবার মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে শাখা–প্রশাখা বাড়িয়ে চলেছে। ফেসবুক এসব খাতে আধিপত্য বিস্তার করতে একই কৌশল নিতে পারে বলেই অনুমান করা যায়। উদ্যোক্তাদের সাবধান হওয়ার সময় এসেছে। তা না হলে ফেসবুকের আড়ালেই হারিয়ে যাবে সবকিছু।

Source: http://www.prothomalo.com/technology/article/1480836/%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95-%E0%A6%9B%E0%A7%8B%E0%A6%9F-%E0%A6%89%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%8B%E0%A6%97%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%9F%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A7%87

218
বাংলাদেশে বজ্রপাত কখন কোথায় বেশি হচ্ছে?

বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় বজ্রপাতে রবিবার অন্তত প্রায় ১৬ জন মারা যাবার খবর পাওয়া গেছে।

চলতি মাসে এনিয়ে বজ্রপাতে মৃত্যু প্রায় ৫০ ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশে গত কয়েক বছর ধরেই দেখা যাচ্ছে বজ্রপাতে বহু মানুষ মারা যাচ্ছে। বছরের এ সময়টিতে বৃষ্টি হওয়ার সাথে সাথে বজ্রপাতও হচ্ছে ব্যাপকভাবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাওহিদা রশিদ বলছেন বজ্রপাত বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে তাপমাত্রা বৃদ্ধির একটি সম্পর্ক আছে।

অধ্যাপক তাওহিদা রশিদ বলছেন বিজ্ঞানীরা অনেকে মনে করেন বিশ্বব্যাপী তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য এটা বেশি হচ্ছে তবে অনেক বিজ্ঞানীই আবার এ মতের সাথে একমত নন।

"তবে বাংলাদেশে আমরাও ভাবছি জলবায়ু পরিবর্তনের কারণেই তাপমাত্রা বেড়েছে এবং এর কিছুটা হলেও প্রভাব পড়েছে। বাংলাদেশে দশমিক ৭৪ শতাংশ তাপমাত্রা বেড়েছে"।

বজ্রপাত বিকেলে বেশি হয় কেনো?

তাওহিদা রশিদের মতে বজ্রপাতের ধরণই এমন। সকালের দিকে প্রচণ্ড তাপমাত্রা হয়। আর তখন এটি অনেক জলীয় বাষ্প তৈরি করে। এ জলীয় বাষ্পই বজ্র ঝড় ও বজ্রপাতের প্রধান শক্তি। তাপমাত্রা যত বাড়বে তখন জলীয় বাষ্প বা এ ধরণের শক্তিও তত বাড়বে।

তিনি বলেন, "জলীয় বাষ্প বেড়ে যাওয়া মানেই হলো ঝড়ের ঘনত্ব বেড়ে যাওয়া। বছরে এক ডিগ্রি তাপমাত্রা বাড়ার কারণে ১২শতাংশ বজ্র ঝড় বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে, এটি কোন কোন বিজ্ঞানী প্রমাণ করেছেন"।

প্রাণহানি এড়ানোর উপায় কী?

তাওহিদা রশিদ বলেন বজ্রপাত প্রকৃতির একটি বিষয় এবং এটি হবেই। তবে এতে প্রাণহানি কমানোর সুযোগ আছে।

"বজ্র ঝড় যখন শুরু হয় এর তিনটি ধাপ আছে। প্রথম থাপে বিদ্যুৎ চমকানি বা বজ্রপাত শুরু হয়না। প্রথমে মেঘটা তৈরি হতে থাকে এবং সে সময় আকাশের অবস্থা খুব ঘন কালো হয়না। একটু কালো মেঘের মতো তৈরি হয় । সামান্য বৃষ্টি ও হালকা বিদ্যুৎ চমকায়। আর তখনি মানুষকে সচেতন হওয়া উচিত"।

তিনি বলেন প্রতিটি দুর্যোগে একটি নির্দিষ্ট সময় আছে এবং সে সম্পর্কে প্রতিটি মানুষকে সচেতন করা উচিত।

"বাইরে থাকলে যখন দেখা যাবে আকাশ কালো হয়ে আসছে তখনি নিরাপদ জায়গায় যেতে হবে। এ সময়টিতে অন্তত আধঘণ্টা সময় পাওয়া যায়"?

কোন নির্দিষ্ট এলাকায় বর্জপাত বেশি হয়?

তাওহিদা রশিদ বলেন অঞ্চল ভেদে এটি কম বেশি হচ্ছে। বজ্রঝড় ও বজ্রপাত এপ্রিল ও মে মাসের কিছু সময় ধরে প্রতি বছরই হয়। এ বছর কিছুটা বেশি মনে হচ্ছে।

তার মতে বাংলাদেশের হাওড় অঞ্চলে বজ্রপাতের সংখ্যা বেশি।

"কারণ ওখানে হাওড়ের জন্য জলীয় বাষ্প বেশি হয়। সে কারণেই সিলেটের ওই অঞ্চলটিতে বর্জপাতের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি"।

বজ্রপাত ঠেকাতে গাছ লাগানো উচিত কোথায়?

অধ্যাপক তাওহিদা রশিদ বলেন তালগাছের মতো গাছগুলো রোপণ করা উচিত খোলা মাঠে, তাহলেই এটি বেশি কাজে দেবে।

"কিন্তু কিছু প্রকল্পের অধীনে সেগুলো লাগানো হচ্ছে রাস্তার পার্শ্বে। এর ফলে বর্জপাত মানুষ বা গাড়ির ওপরই পড়বে"।

তিনি বলেন ঘন বনও বর্জপাতের জন্য ভালো, কারণ এটি তাপমাত্রাও কমায়। গ্রামে ছোট ছোট গাছের ঝোপ থাকলে লোকজন সেখানেও আশ্রয় নিতে পারে।

Source: https://bbc.in/2rd5MCe

219
কিভাবে অজান্তেই এতোদিন ধরে পোকা খেয়ে আসছেন অনেকে
আপনি হয়তো ভাবতে পারেন যে, পোকামাকড় কিভাবে খাওয়া সম্ভব? কিন্তু দুঃসংবাদ হলো, আপনি হয়তো অনেক দিন ধরেই অজান্তে সেগুলো খেয়ে আসছেন।

কারণ বিশ্বে খাবারে লাল রঙ করার জন্য কারমাইন নামের যে পদার্থ সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়, তা তৈরি হয় পোকামাকড় চূর্ণ করেই।

দক্ষিণ আমেরিকায় ক্যাকটাসে কোকোহিনেল নামের এক ধরণের পোকা থাকে। আর সেই পোকা চূর্ণ করেই তৈরি করা হয় কারমাইন।

এখন পেরুতে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে এই পোকার চাষাবাদ করা হয়। খাবারে রঙ করার জন্য প্রতিবছর ক্ষুদ্রাকৃতির এরকম কোটি কোটির পোকার চাষ করা হচ্ছে। আর সেই পোকার চূর্ণ কারমাইন ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে বিশ্বের খাদ্য শিল্পে। দধি থেকে শুরু করে আইসক্রিম. ফলের পাই থেকে শুরু করে কোমল পানীয়ে ব্যবহৃত হচ্ছে কারমাইন।

তবে কারমাইনের এই ব্যাপক ব্যবহারের কারণ হচ্ছে, এটি নিরাপদ আর দীর্ঘস্থায়ী, যা তাপ বা আলোর কারণে নষ্ট হয়না।

সমর্থকরা দাবি করেন, পাঁচশো বছরেরও আগে থেকে দক্ষিণ আমেরিকান মায়া নৃগোষ্ঠী, এরপরে অ্যাজটেক মানুষরা এই পোকার চূর্ণ ব্যবহার করতো। কৃত্রিমভাবে তৈরি খাবারের রঙের তুলনায় এটি মানুষের স্বাস্থ্যের চেয়ে অনেক ভালো বলে তারা মনে করেন।

তবে তারাও স্বীকার করেন, খাদ্য পণ্যের গায়ে এই পণ্যটির ব্যবহারের কথা পরিষ্কারভাবে উল্লেখ থাকা উচিত। পাশাপাশি এখন প্রাকৃতিক অন্য অনেক কিছু থেকে লাল রঙ তৈরি হচ্ছে, যেখানে কোন পোকামাকড় নেই।

হয়তো আপনি লাল রঙের কোন খাবারের উপাদান তালিকায় চোখ বোলালে, সেখানে কারমাইন নামটি দেখতে পাবেন না। বরং হয়তো লেখা রয়েছে, প্রাকৃতিক লাল রঙ অথবা ক্রিমসন লেক অথবা ই১২০ নম্বরটি, ইউরোপীয় ইউনিয়ন কারমাইনকে যে নম্বরটি দিয়েছে।

কারমাইন নিয়ে গবেষণা করেছেন অ্যামি বাটলার গ্রিনফিল্ড। তিনি বলছেন, খুব কম মানুষেরই এই খাদ্য উপাদানে সমস্যা হয়। সবমিলিয়ে খাবারের উপাদান হিসাবে এর অতীত খুবই ভালো।

বিশ্বে কারমাইনের ৯৫ শতাংশই উৎপাদন করে পেরু। স্ত্রীলিঙ্গের পোকাগুলোই চাষ করা হয়, কারণ এগুলোর ডানা থাকে না, ফলে উড়তেও পারে না।

বছরে বছরে বিশ্বে কারমাইনের চাহিদাও বাড়ছে, ফলে এর দামও চড়া হচ্ছে। গত চার বছরে কারমাইনের দাম বেড়েছে ৭৩ শতাংশ।

তবে কোন কোন কোম্পানি কারমাইন থেকে নিজেদের সরিয়েও নিচ্ছে। এরকম একটি বড় কোম্পানি যুক্তরাষ্ট্রের কফি চেইন স্টারবাকস।

যদিও টমেটো, বেরি আর বেটরুট থেকেও রঙ তৈরি করা হয়, কিন্তু সেগুলোর কোনটাই কারমাইনের মতো স্থায়ী নয়।

মিজ বাটলার বলছেন, পাশাপাশি এটাও মনে রাখতে হবে যে, কারমাইন এমন একটি প্রাকৃতিক উপাদান, যার ওপর পেরুর অসংখ্য কৃষকের আয়ের উৎস।

''পেরুর মানুষজন বেশিরভাগই গরীব, বেঁচে থাকার জন্য কারমাইনের ওপর তারা নির্ভর করে আছে।''

Source: https://www.bbc.com/bengali/news-43945075

220
[/b]

1. This bin collects garbage from the sea. Seabin has a pump that creates a flow of water.  The garbage is caught in a bag, allowing water to flow out back to sea.

2. This machine crushes beer bottles into usable sand. 200 grams of powder form each bottle is recycled to preserve beaches.

3. SaltWater Brewery created edible packaging to save sea life. The six-pack rings are made of barley and wheat. Sea life can eat the rings safely.

4. AIR-INK can turn air pollution into ink. it collects carbon soot from a car's exhaust. Then it is processed into a high-quality black ink.

5. These edible water blobs are biodegradable. The capsule is made from a seaweed extract. A greener solution to creating waste-free packaging.

6. This "Ocean Cleanup" machine has a giant floating pipe to capture plastic. The pipe moves with the waves and has floating anchors. The plastic is a; gathered in the center for a boat to remove.

7. Avani's biodegradable bags are saving sea life and reducing ocean pollution. They are made from cassava root and natural starches. Making them harmless for animal consumption.

8. This machine recycles tires. They are turned into rubber crumb for artificial grass.

9. Aquaponics combines fish farming and hydroponics. As the fish eat and grow they produce waste. The wastewater is given to plants as a fertilizer. The plants absorb the nutrients in the water and they are returned to the fish tanks. A natural process to growing food.

10. HomeBiogas 2.0 turns food scraps into cooking gas. The gas flows from the system directly to the kitchen stove.
It can be fed up to six liters of waste and digest almost anything. HomeBiogas can also create fertilizer that goes back into soil.

Read more: http://www.businessinsider.com/sai

221
May be....

But, CRICKET game is losing its fascinating magnetic pull due to introduction new formats....

 :(

222
কোয়ান্টাম কম্পিউটিংয়ে হুমকির মুখে ইন্টারনেট নিরাপত্তা

প্রযুক্তি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে যে, এর উন্নতি স্বয়ং প্রযুক্তিবিদদেরই মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে! প্রযুক্তিগত এমন এক উন্নয়নের নাম কোয়ান্টাম কম্পিউটিং। বহু বছর ধরে যে ধরনের গণিত আর অ্যালগরিদম ইন্টারনেট ভিত্তিক যোগাযোগ ব্যবস্থাকে সুরক্ষিত করে রেখেছিল, কোয়ান্টাম কম্পিউটিংয়ের ক্রমশ উন্নতি সেসবের জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

যেসব সমস্যা প্রচলিত সর্বাধুনিক কম্পিউটার দিয়ে সমাধান করতেও বছরের পর বছর লাগতো, কোয়ান্টাম কম্পিউটার দিয়ে সেসব কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সমাধান করা সম্ভব। ফলে কোয়ান্টাম কম্পিউটার যখন মানুষের হাতের নাগালে আসবে, তখন প্রচলিত পদ্ধতিতে ইন্টারনেটে তথ্য আদান-প্রদান ব্যবস্থা আর নিরাপদ থাকবে না। যদি না সম্পূর্ণ নতুন কোনো অ্যালগরিদম আবিষ্কৃত হয়। চলুন জেনে নিই কীভাবে এই কোয়ান্টাম কম্পিউটিং প্রচলিত ইন্টারনেট নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে প্রায় অচল করে দিতে পারে।

শুরুতে কিছু শব্দের সাথে পরিচিত হওয়া দরকার। অনুরোধ থাকবে একটু মনযোগ দিয়ে পড়ার জন্য। এনক্রিপশন (Encryption), এটি হলো একটি বিশেষ প্রক্রিয়া। এর মাধ্যমে কোনো নির্দিষ্ট তথ্যকে এমন কিছু সাংকেতিক ভাষায় রূপান্তরিত করা হয়, যে সংকেত থেকে মূল তথ্যটি বোঝা প্রায় অসম্ভব। ডিক্রিপশন (Decryption), এটি হলো এনক্রিপশনের ঠিক উল্টো। দুর্বোধ্য সাংকেতিক ভাষা থেকে আসল তথ্যটি বের করে আনার প্রক্রিয়াকে ডিক্রিপ্ট করা বলে। ইন্টারনেটের তথ্য সুরক্ষিত রাখার জন্য বর্তমানে প্রধানত দুই ধরনের এনক্রিপশন পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়-

সিমেট্রিক কী ক্রিপটোগ্রাফি (Symmetric-key Cryptography)
পাবলিক কী ক্রিপটোগ্রাফি (Public-key Cryptography) বা এসিমিট্রিক কী ক্রিপটোগ্রাফি (Asymmetric-key Cryptography)
সিমেট্রিক কী ক্রিপটোগ্রাফি অপেক্ষাকৃত পুরাতন। সহজ ভাষায় বলতে গেলে, এ পদ্ধতিতে কোনো তথ্য আদান-প্রদানের জন্য প্রেরক এবং প্রাপকের কাছে একই ধরনের কী বা চাবি লাগবে। অর্থাৎ যে তথ্য পাঠাবে, সে যে চাবি দিয়ে তার তথ্যকে এনক্রিপ্ট করবে; যার কাছে পাঠাবে, তাকে সেই এনক্রিপ্টেড (Encrypted) তথ্য থেকে মূল তথ্য বের করে আনার (Decrypted) জন্য একই ধরনের চাবি ব্যবহার করতে হবে। এজন্য প্রেরক এবং প্রাপককে আগে থেকেই তাদের চাবি ঠিক করে রাখতে হবে। ফোনে অথবা সরাসরি সাক্ষাৎ করে, অথবা অন্য কোনো উপায়ে তাদের চাবির বর্ণনা একে অপরকে জানাতে হবে। এভাবে প্রত্যেকবার তথ্য আদান প্রদানের আগে চাবির বর্ণনা জানানো এতটা সহজ নয়। আবার অনেক ক্ষেত্রে চাবির সহজ বর্ণনা চোরের জন্য সহজ হয়ে যায়। আর চাবি পেয়ে গেলে অনায়াসে এনক্রিপ্টেড তথ্য ডিক্রিপ্ট করা যাবে।

এসব সমস্যা দূর করার জন্য সত্তরের দশকে আসে পাবলিক-কী-ক্রিপ্টোগ্রাফি বা এসিমিট্রিক কী ক্রিপটোগ্রাফি। ধরা যাক, মীনা তার ভাই রাজুর কাছে একটি তথ্য পাঠাবে। এজন্য মীনার কাছে দুই ধরনের চাবি থাকতে হবে। একটি হলো পাবলিক কী। আরেকটি হলো প্রাইভেট কী। রাজুর কাছেও এই দুই ধরনের চাবি থাকতে হবে। কিন্তু উভয়ের পাবলিক কী এবং প্রাইভেট কী-গুলো সম্পূর্ণ আলাদা। এখন রাজু তার পাবলিক কী মীনার কাছে পাঠাবে। মীনা রাজুর পাবলিক কী দ্বারা তার তথ্যটি এনক্রিপ্ট করে রাজুর কাছে পাঠাবে।

রাজু তার নিজের প্রাইভেট কী দ্বারা এনক্রিপ্টেড তথ্যটি ডিক্রিপ্ট করবে। এ পদ্ধতিতে কারো প্রাইভেট কী আদান প্রদান করতে হচ্ছে না। যার যার প্রাইভেট কী তার তার কাছে থাকছে। কেউ যদি পাবলিক কী পেয়েও যায়, কোনো লাভ নেই; কারণ তথ্য ডিক্রিপ্ট করার জন্য প্রাইভেট কী লাগবে, যেটা কখনো আদান প্রদান করার প্রয়োজন হবে না। এই পাবলিক কী এবং প্রাইভেট কী কিন্তু সত্যিকারের কোনো চাবি নয়! এগুলো হলো অনেক বড় বড় মৌলিক সংখ্যা (Large Prime Numbers)।

পাবলিক কী ক্রিপ্টোগ্রাফি বুঝতে হলে আগে কিছু বিষয় জানতে হবে। শুরু করা যাক ট্র্যাপডোর ফাংশন দিয়ে। ট্র্যাপডোর ফাংশন হলো এমন একধরনের ফাংশন, যা দিয়ে একদিকে খুব সহজেই হিসাব করা যায়, কিন্তু বিপরীত দিকে হিসাব করা (Inverse function) খুবই কঠিন, যদি না বিশেষ কোনো তথ্য জানা থাকে।

প্রাইম ফ্যাক্টরাইজেশন হলো কোনো সংখ্যাকে তার মৌলিক উৎপাদকগুলোতে বিশ্লেষণ করা। যেমন ৩৫ এর প্রাইম ফ্যাক্টরাইজেশন করলে ৫ এবং ৭ পাওয়া  যাবে, তেমনই ৩০ এর প্রাইম ফ্যাক্টরাইজেশন ৩, ৫ ও ২।

কম্পিউটার খুব সহজেই সংখ্যা গুণ করতে পারে, কিন্তু কোনো সংখ্যাকে এর উৎপাদকে বিশ্লেষণ করতে এর কিছুটা সময় লাগে। অনেকটা ট্র্যাপডোর ফাংশনের মতো। কোনো বড় সংখ্যার প্রাইম ফ্যাক্টরাইজেশন করতে সাধারণ কম্পিউটারের বছরের পর বছরও লাগতে পারে। বিজ্ঞানীদের ২৩২ অঙ্কের একটি সংখ্যার উৎপাদকে বিশ্লেষণ করতে প্রায় দুই বছর লেগেছিল। এর জন্য তারা শত শত কম্পিউটার একইসাথে সমান্তরালে ব্যবহার করেছিল।

গাণিতিক ব্যাখায় না গিয়ে সহজ ভাষায় বলতে গেলে, পাবলিক কী ক্রিপ্টোগ্রাফিতে পাবলিক কী এবং প্রাইভেট কী এর গুণফল আর সেই গুণফলের প্রাইম-ফ্যাক্টরাইজেশন, এই দুই জিনিসের উপর ইন্টারনেটের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নির্ভর করে। বিষয়গুলো কিছুটা জটিল, তবে আগ্রহী পাঠকগণ এখান থেকে পাবলিক-কী-এনক্রিপশন সম্পর্কে আরো জানতে পারবেন।

এবার কোয়ান্টাম কম্পিউটারের বিষয়ে আসা যাক। প্রচলিত কম্পিউটার গণনা করে বিট (Bit) দিয়ে, যা ০ বা ১-এই দুই অবস্থার যেকোনো একটি অবস্থায় থাকতে পারে। আর কোয়ান্টাম কম্পিউটারের গণনার মূল একক হলো কিউবিট (Qubit = Quantum Bit)। কিউবিট ব্যবহারের ফলে এর গণন ক্ষমতা প্রচলিত কম্পিউটারের তুলনায় বহু গুণ বেড়ে যায়। যেখানে প্রচলিত কম্পিউটার দিয়ে বড় কোনো সংখ্যার উৎপাদকে বিশ্লেষণ করতে বছরের পর বছর লাগতে পারে, সেখানে কোয়ান্টাম কম্পিউটার তা কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই করতে পারবে।

১৯৯৪ সালে এমাআইটি (MIT)-র অধ্যাপক পিটার শোর এক ধরনের কোয়ান্টাম অ্যালগরিদমের ধারণা দেন, যা দ্বারা খুব সহজেই বড় বড় সংখ্যাকে উৎপাদকে বিশ্লেষণ করা সম্ভব। এর ফলে হ্যাকারদের আর প্রাইভেট-কী এর প্রয়োজন হবে না, তারা ইন্টারনেটে বিদ্যমান যেকোনো এনক্রিপটেড তথ্য কোয়ান্টাম কম্পিউটার দিয়ে সহজেই ডিক্রিপ্ট করতে পারবে।

তবে আশার কথা হলো, পিটার শোরের অ্যালগরিদম বাস্তবায়ন করার জন্য অনেক বড় সংখ্যার কিউবিটের কোয়ান্টাম কম্পিউটার লাগবে, যা এখনো তৈরি করা সম্ভব হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে ২০২৫ সালের মধ্যে কোয়ান্টাম কম্পিউটার ব্যবহার উপযোগী হবে। তখন প্রকৃতপক্ষেই প্রচলিত ইন্টারনেট নিরাপত্তা ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়বে।

আমেরিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব স্ট্যান্ডার্ড এন্ড টেকনোলোজিতে সমস্যা মোকাবেলা করার জন্য পোস্ট-কোয়ান্টাম ক্রিপ্টোগ্রাফি নামে একটি প্রোগ্রাম চালু করেছে। বিশ্বের বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো এর সাথে যুক্ত আছে। এর কাজ হচ্ছে এমন এনক্রিপশন অ্যালগরিদম তৈরি করা, যা কোয়ান্টাম-রেজিস্ট্যান্ট হবে। অর্থাৎ একে কোয়ান্টাম কম্পিউটার দিয়েও সহজে ভাঙ্গা যাবে না।


Source: https://roar.media/bangla/main/tech/the-threat-of-quantum-computing/

223
কার্বন নিজেই যখন দূষণ রোধের সমাধান এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের কারিগর

কার্বন মজুদকরণ নিয়ে আগের একটি লেখায় বলা হয়েছিলো যে কার্বন ডাই অক্সাইড তরল করে মাটির নিচে মজুদ করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। মাটির নিচে কার্বন গ্যাসকে মজুদ করে রাখা হবে এবং এর ফলে গ্যাসটি আর পরিবেশে বের হতে পারবে না। পরে গিয়ে এই মজুদকৃত গ্যাসকে মানব সমাজের জন্য বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হবে। এই গ্যাসকে কীভাবে পরিবেশবান্ধব উপায়ে ব্যবহার করা যায় সেটা নিয়েও এখন গবেষণা চলছে।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে, আমরা যদি একবার নিঃশ্বাস নেই তাহলে ০.৬ গ্রাম বাতাস আমাদের শরীরের ভিতর যায়। বাতাসের একটি উপাদান হিসেবে ০.৪ মিলিগ্রাম কার্বন-ডাই-অক্সাইডও কিন্তু আমরা নিঃশ্বাস নেই। ষোড়শ শতকে এর পরিমাণ ছিল ০.৩ মিলিগ্রাম। প্রথম দেখায় এই সংখ্যাটির সাথে আগের সংখ্যার খুব বেশী পার্থক্য না দেখা গেলেও বর্তমান প্রেক্ষাপটে পরিবেশে এই ০.১ মিলিগ্রাম কার্বন বেড়ে যাওয়ার কারণেই বিশ্ব উষ্ণায়ন এখন সবার জন্য একটি মাথাব্যথার কারণ। প্রতি বছর যে পরিমাণে গরম বেড়ে যাচ্ছে এবং যেভাবে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে পৃথিবীতে মানব সমাজের টিকে থাকা নিয়েও এখন প্রশ্ন উঠছে।

কার্বন মজুদ করার প্রক্রিয়া এবং প্রকল্প- দুটিই অত্যন্ত জনকল্যাণকর। এটি মানব সমাজের জন্য একটি সুফল বয়ে নিয়ে আসতে বাধ্য। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, অর্থনৈতিক দিক দিয়ে এরকম প্রকল্প কিন্তু অনেক খরচ সাপেক্ষ। বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ করতে হয় শুধু একটিমাত্র প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে। তাই উন্নয়নশীল কিংবা নিম্ন আয়ের দেশগুলোর জন্য এরকম প্রকল্প হাতে নেয়াটা বোকামি ছাড়া কিছু নয়। কিন্তু উন্নত বিশ্বের শিল্প কারখানার বিকশিত হওয়ার কারণে যে কার্বন তৈরি হচ্ছে তার মূল্য দিতে হচ্ছে অনুন্নত দেশগুলোকে। এখান থেকে বের হওয়ার উপায় কি? কার্বনকে কীভাবে অর্থনীতির কারিগর হিসেবে ব্যবহার করা যায় সেটাই আজকে আলোচনা করা হবে।

কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান কিন্তু কার্বন মজুদকরণ শুরু করে দিয়েছে এবং তারা সুফলও পাচ্ছে। যেমন, কানাডাতে Boundary Dam Coal-fired Power Plant নামের একটি প্রতিষ্ঠান ২০১৪ সাল থেকেই কার্বন ডাই অক্সাইড মাটির নিচে মজুদ করা শুরু করে দিয়েছে। যদিও ১৯৭০ সাল থেকেই এই কার্বন মজুদকরণের জন্য ছোট ছোট উদ্যোগ নেয়া হয়েছিলো। কিন্তু এটা এখনকার পরিপ্রেক্ষিতে অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ সমাধান হিসেবে মর্যাদা পেয়েছে।

কিন্তু বিলিয়ন বিলিয়ন অর্থ খরচ করে শুধু কার্বনকে মাটিতে পুঁতে দেয়াই হচ্ছে। এর ফলে কিন্তু কোনো অর্থনৈতিক লাভ পাওয়া যাচ্ছে না। পরিবেশের লাভ হচ্ছে। কিন্তু একটি দেশ কেন কোনো প্রকার লাভ ছাড়াই এত অর্থ খরচ করবে? এর থেকে কিছু লাভ কি করা যায় না? তখন এটা নিয়ে গবেষণা শুরু হলো যেটা অনুন্নত দেশগুলো নিজেদের দেশে কার্বন কমানোর উপায় হিসেবে অবলম্বন করতে পারে। এই কার্বনকে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যায়। এই ধারণার পরিপ্রেক্ষিতে কার্বনকে একটি উপকারী পণ্য হিসেবে ব্যবহার করা যায় কিনা তা নিয়ে গবেষণা শুরু করা হয় এবং কিছু গবেষণা করার পর দেখা যায় যে কার্বন ব্যবহার করে প্লাস্টিক, তেল এবং দালানকোঠা বানানোর উপাদান কংক্রিট বানানো যায়।


শিল্পকারখানা থেকে বেরিয়ে আসা দূষক এবং দূষিত মাটির সাথে কার্বন-ডাই-অক্সাইড মিশিয়ে বিভিন্ন দালানকোঠা নির্মাণের জন্য কংক্রিট তৈরি করা হচ্ছে; Source: The green optimistic

বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে বের করলেন যে কার্বন শুধু একটি পরিবেশ দূষক নয়, এর থেকে অনেক উপকারও পাওয়া যেতে পারে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কার্বন মজুদকরণের মাধ্যমে এবং শুধু কার্বন দিয়ে কোটি কোটি অর্থ উপার্জনও সম্ভব। কার্বন মজুদ করার সময় মাটির নিচে একে ঠেলে পাঠাতে হয়। এই ঠেলে পাঠানোর জন্য যে চাপ পড়ে, সেই চাপ ব্যবহার করে মাটির নিচ থেকে তেল তুলে আনা হয় এবং সেই জায়গা কার্বন দিয়ে ভরাট করা হয়। কার্বন মজুদ করার জন্য যে প্রযুক্তি তৈরি করা হয়েছে সেই প্রযুক্তি ব্যবহার করার ফলে এখন মাটি থেকে তেল উত্তোলন অনেকটা সহজ হয়ে গিয়েছে। খুব দ্রুত এখন তেল উত্তোলন করা সম্ভব। আবার বিভিন্ন কোমল পানীয় এবং তেলের খনিগুলোতে বুদ বুদ তৈরি করার জন্য এই কার্বন ডাই অক্সাইড ব্যবহার করা হচ্ছে।

বিজ্ঞানীরা চেষ্টা করেছেন কার্বনকে অন্য কোনো উপকারী কিছুতে পরিণত করতে। যেমন, ইউরিয়া তৈরিতে কার্বন ব্যবহার করা হচ্ছে, যা চাষাবাদে কৃষকদের কাজে লাগে। উনিশ এবং বিশ শতকে রসায়নবিদরা মিলে একটি ওষুধ তৈরি করেন যেটা কম-বেশী এখন আমরা সবাই সেবন করি, যার নাম এসপিরিন বা এসিটাইল সেলিসিলিক এসিড। ১৮৫৯ সালে হারমান কোলবে সোডিয়াম ফেনলেটের সাথে কার্বন ডাই অক্সাইডের বিক্রিয়া ঘটিয়ে এই এসিটাইল সেলিসিলিক এসিড তৈরি করেন, যেখান থেকে এসপিরিন তৈরি করা হয়।

কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান কলকারখানাগুলো থেকে কার্বনের যে ধোঁয়া বের হয় সেটা বাতাসের সংস্পর্শে আসার আগেই সেখান থেকে সংগ্রহ করে নিচ্ছে এবং সেই কার্বন দিয়ে অন্যান্য পণ্য তৈরি করার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। কার্বনকে কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের দ্রব্য তৈরি করছে উন্নত দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। যেমন-

১) Carbon8Aggregates (UK) শিল্পকারখানা থেকে বেরিয়ে আসা দূষক এবং দূষিত মাটির সাথে কার্বন ডাইঅক্সাইড মিশিয়ে বিভিন্ন দালানকোঠা নির্মাণ সামগ্রি তৈরি করছে।

২) CCm Research (UK) ভালো ফসল উৎপাদনের জন্য উন্নত মানের সার তৈরি করছে এই কার্বন দিয়ে এবং কার্বন ডাইঅক্সাইড দিয়ে কোট করা ফাইবার তৈরি করা হচ্ছে, যেটা প্লাস্টিক তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।

৩) Convestro (Germany) পলিইউরিথিন নামক প্লাস্টিক তৈরি করছে এই কার্বন ব্যবহার করে, যা ফোমে ব্যবহার করা হয়।

8) Sunfire (Germany) একধরনের সিনথেটিক ফুয়েল তৈরি করছে, যা মজুদকৃত কার্বনের সাহায্যেও তৈরি করার প্রস্তুতি চলছে। এই প্রজেক্টটি অডি (Audi) প্রতিষ্ঠানের সাথে অংশিদারিত্বে করা হচ্ছে।

৫) Oberon Fuels (California) সিনথেটিক ডিজেল তৈরি করছে যেটা থেকে কোনো সালফার নিঃসরণ হবে না এবং খুব কম দূষিত পদার্থ বের হবে। এই প্রজেক্টটির সাথে ভলভো, ফোর্ড এবং ম্যাক নামের একটি আমেরিকান ট্রাক নির্মাণ প্রতিষ্ঠান যুক্ত আছে।

৬) CarbonCure (Canada) এমন একটি প্রতিষ্ঠান যারা কংক্রিটের ভিতর কীভাবে কার্বন ডাইঅক্সাইড ঢেলে মিশিয়ে দেয়া যায় সেই ধরনের প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে।

৭) Soldia Technologies (New Jersey) কংক্রিট তৈরি করে যারা দাবি করছে যে তাদের নির্মাণাধীন কংক্রিট কার্বনকে কংক্রিটের ভিতর বন্দি করে ফেলতে পারে।

এছাড়া কার্বন থেকে কৃত্রিম পেট্রোল তৈরির দিকে বিজ্ঞানীরা এখন ঝুঁকেছে। কারণ, প্রথমত ফসিল থেকে প্রাপ্ত শক্তি একদিন না একদিন শেষ হয়ে আসবেই। তাই ফসিলের উপর চাপ কমাতে কার্বনকে ব্যবহার করে পেট্রোল তৈরি করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তাছাড়া কার্বন থেকে প্রাপ্ত তেলগুলোতে কার্বন নিরপেক্ষ ভাব বজায় রাখবে, তাই এর থেকে গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ হওয়ার পরিমাণ প্রায় শূন্যের কাছাকছি হবে। বিজ্ঞানীদের চেষ্টা হচ্ছে এমনভাবে এই ধরনের তেল তৈরি করা হবে যাতে তেলগুলো পুড়ে যখন এর গ্যাস নিঃসরিত হবে তখন যেন সেটাকে মজুদ করে পুনরায় ব্যবহার উপযোগী করে তোলা যায়।

উপরের আলোচনা থেকে বোঝা যাচ্ছে যে পরিবেশে কার্বনের নিঃসরণ কমাতে কার্বন মজুদকরণের পাশাপাশি বিভিন্নভাবে একে ব্যবহার করার প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। এতে কার্বন নিঃসরণ কমানোর পাশাপাশি ব্যবসায়ীরা এবং কিছু প্রতিষ্ঠান লাভজনক ব্যবসাও করতে পারছে। এরকম হওয়ার আরও একটি ভালো দিক হচ্ছে কার্বনকে পরিবেশবান্ধব এবং মানব কল্যাণে ব্যবহার করার জন্য যে দ্রব্যাদি তৈরি করা হচ্ছে তার জন্য নতুন নতুন আরও শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে, যে কারণে কর্মসংস্থানের যোগানও বেড়ে যাচ্ছে।

তবে কার্বন নিয়ে আরও কিছু কাজ করার প্রয়োজন বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। বিশেষ করে কার্বন মজুদ করার জন্য এবং এই প্রক্রিয়াকে আরও নিখুঁত করার জন্য কার্বন নিয়ে মৌলিক কিছু গবেষণা করার প্রয়োজন। যেমন, কার্বন এবং অক্সিজেনের মধ্যেকার বন্ধন ভেঙ্গে ফেলা নিয়ে আরও অনেক গবেষণা প্রয়োজন। কার্বন কিন্তু মোটামুটি বিক্রিয়া স্বাধীন একটি পদার্থ আবার পুরোপুরি নিষ্ক্রিয় কিন্তু নয়। বিক্রিয়া করার জন্য এর প্রভাবকের প্রয়োজন পড়ে। এই প্রভাবক বিক্রিয়ার জন্য যে পরিমাণ শক্তির দরকার হয় সেটা কমিয়ে দেয়। তাই কার্বন মজুদকরণের জন্য ঠিক কোন প্রভাবক ঠিক ঠিকভাবে কাজ করবে এবং তা খরচ সাপেক্ষ কিনা সেই দিকগুলো নিয়ে এখনও গবেষণা করার প্রয়োজন আছে।

Source: https://roar.media/bangla/main/tech/when-carbon-itself-is-the-solution-of-decreasing-polluition-and-enhancing-economy/

224
Real Estate / Re: Became Editorial Board Member
« on: April 29, 2018, 09:28:09 PM »
Congratulations!!!

225
তরঙ্গ থেকে তথ্য: ওয়াই-ফাই বৃত্তান্ত

কেমন হত যদি আপনার সকল তারবিহীন সংযোগ তারের মাধ্যমে পরিবর্তন করে দেয়া হত। আপনাদের বাসার টেলিভিশন, ল্যাপটপ প্রতিটির সাথে তার লাগানো থাকত যার দৈর্ঘ্য হত শত শত মাইল। আর ফোন করার জন্য আপনার রাস্তার পিলারের সাথে সংযুক্ত করতে হত। এমনকি আপনি উড়োজাহাজ চালাতে সক্ষম হতেন না, কেননা পাইলটদের দিকনির্দেশনা দেয়ার জন্য সংকেত পাঠানো সম্ভব হত না। জানালা দিয়ে দেখলে খালি চারদিকে তার আর তার দেখতে পেতেন। এর মধ্যেই তারবিহীন সংযোগের সৌন্দর্য লুকিয়ে আছে। তারবিহীন সংযোগের যে মাধ্যমটি আপনি প্রতিনিয়ত ব্যবহার করে চলেছেন তা হল ওয়াই-ফাই। ঘরে এবং বাইরে আমাদের ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত থাকার জন্য ওয়াই-ফাই অবিচ্ছেদ্য ভূমিকা পালন করছে বা করে এসেছে।

ওয়াই-ফাই কী সেটা সহজভাবে ব্যাখ্যা করতে চাইলে বলা যায় তা একধরনের তরঙ্গ। রেডিও তরঙ্গ তথ্য এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় বাতাসের মাধ্যমে বহন করে নিয়ে যায়। তবে বিভিন্ন বাধা ওয়াই-ফাই এর পরিসর এবং কার্যক্ষমতার উপরে প্রভাব ফেলতে পারে। তাছাড়া রেডিও তরঙ্গ ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরকারি বিভিন্ন নিয়ম নীতি মেনে চলতে হয়। এখন শুরু করার আগে রেডিও তরঙ্গের কিছু পরিভাষা নিয়ে হালকা আলোচনা করা যাক।

রেডিও তরঙ্গ একধরনের তড়িৎচুম্বকীয় সংকেত যা বাতাসের মধ্য দিয়ে লম্বা দূরত্বে তথ্য বহন করে নিয়ে যায়। এই তরঙ্গকে অনেক সময় রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি সিগন্যাল বলেও আখ্যায়িত করা হয়। এই সংকেতগুলো খুব উচ্চ কম্পাংকে কম্পনশীল হয়, যার কারণে তরঙ্গগুলোকে সমুদ্রের ঢেউয়ের সাথে তুলনা করা যায়। রেডিও তরঙ্গগুলো বাতাসের মধ্য দিয়ে ভ্রমণ করতে থাকে। আমরা এই তরঙ্গ অনেক বছর ধরেই ব্যবহার করে এসেছি। আমাদের এফএম রেডিওতে গান এবং টেলিভিশনে ভিডিও বহন করার জন্য এই রেডিও তরঙ্গই দায়ী। তথ্য সরবরাহ করার ক্ষেত্রে এর বৈশিষ্ট্যের মধ্যে ভিন্নতা দেখা দেয় সময়ের সাথে সাথে।

বিস্তার(Amplitude): রেডিও তরঙ্গের বিস্তারের মাধ্যমে তার শক্তি বিবেচনা করা হয় সাধারণত। এ কারণেই হয়ত বিস্তার মাপা হয় শক্তির এককের মাধ্যমে। তড়িৎচুম্বকীয় তরঙ্গের শক্তি বিবেচনা করা যায় একটি তরঙ্গকে একটি নির্দিষ্ট দূরত্ব অতিক্রম করতে যে পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন হবে তার দ্বারা। শক্তি বৃদ্ধির সাথে সাথে পরিসরও বৃদ্ধি পায়।

কম্পাংক(Frequency): তরঙ্গের কম্পাংক বোঝানো হয় কোনো সংকেত প্রতি সেকেন্ডে কী পরিমাণে পুনরাবৃত্তি হয়েছে তার মাধ্যমে। ওয়াই-ফাই এর জন্য যে তরঙ্গ ব্যবহার করা হয় তা সাধারণত ২.৪ গিগাহার্জ (সেকেন্ডে দুই হাজার চার শত কোটি বার স্পন্দিত) এবং ৫ গিগাহার্জের (সেকেন্ডে পাঁচ হাজার কোটি বার স্পন্দিত) হয়ে থাকে। এত উঁচু কম্পাংকের শব্দ বা আলো কোনোটিই মানুষ শুনতে বা দেখতে পারে না। এই কারণে রেডিও তরঙ্গ মানুষ লক্ষ্য করে না।

ওয়াই-ফাই যেকোনো স্থানে খুব দ্রুত ডেটা এনকোডেড স্পন্দন বা তরঙ্গ হিসেবে সঞ্চালিত হয়। এই স্পন্দনগুলোর একটি ছবি ফ্রেমবন্দী করা গেলে দেখা যাবে যে, স্পন্দনগুলোর মধ্যে প্রায় ৬ ইঞ্চি ব্যবধান রয়েছে (নিচের এই ছবিতে তা হালকা রঙিন ব্যান্ড দ্বারা দেখানো হয়েছে)। ওয়াইফাই রাউটার মূলত একটি অ্যান্টেনা, যা একই সময়ে একাধিক ফ্রিকোয়েন্সি উপর তথ্য পাঠাতে পারে। এই বহুবিধ ফ্রিকোয়েন্সিগুলোকে নীল, সবুজ, হলুদ এবং লাল রং হিসাবে দেখানো হয়, যা ছবিটির চারপাশের স্থানটি ছড়িয়ে অবস্থান করছে। এখানে দেখানো হয়েছে যে, একাধিক কম্পাংকের তথ্য হিসাবে একটি স্থানে ঘূর্ণিপাক খাচ্ছে, কিন্তু যেকোনো বেতার যন্ত্র দ্বারা এই তথ্য বুঝে অনুবাদ করা সম্ভব একটি সাধারণ ট্যাগ সিস্টেম ব্যবহার করার মাধ্যমে।

ওয়াই-ফাই মূলত নির্ভর করে একধরনের রেডিও তরঙ্গের আদান প্রদানের উপর। এই তরঙ্গের নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তরঙ্গগুলোর একটির সাথে আরেকটির দূরত্ব রেডিও তরঙ্গ হতে কম, তবে মাইক্রোওয়েভ থেকে বেশি। কিছুক্ষণ আগে আপনাদের ওয়াই-ফাই তরঙ্গের দুই ধরনের কম্পাংকের কথা বলেছিলাম। এমনটা নিয়ন্ত্রণ করা হয় যাতে অন্যান্য তরঙ্গের সংঘর্ষ না হয়। ওয়াই-ফাই তরঙ্গের দুটি শীর্ষের মধ্যবর্তী দূরত্ব ৩ থেকে ৫ ইঞ্চির মতো হয়ে থাকে।

কম্পিউটার সাধারণত বাইনারি সংখ্যা (০ এবং১)  দ্বারা সবকিছু বিবেচনা করে। তরঙ্গের শীর্ষকে একটি কম্পিউটার ১ হিসেবে এবং পাদকে ০ হিসেবে বিবেচনা করে। ০ এবং ১ এর মাধ্যমে বিট গঠিত হয় যা কম্পিউটারের জগতে নেটওয়ার্কের গতির নির্ণায়ক হিসেবে কাজ করে। ০ এবং ১ এর একটি শিকল অক্ষর, সংখ্যা এবং কোডে পরিণত হয় যা আমাদের স্ক্রিনে আসা ওয়েবপেইজ, ইমেইল এবং অন্যান্য উপাদান গঠন করে। আপনার এই তথ্য আপনার সেবা প্রদানকারী ইন্টারনেট সেবার সার্ভার হয়ে আবার চলে যাচ্ছে ইন্টারনেটের বিশাল জালে।

সাধারণত ওয়াই-ফাই তরঙ্গের বিস্তার হ্রাস পায় তা তার উৎস থেকে যত দূরে যায় সেই হারে। এই কারণে উপরের ছবিতে ডান পাশে বিস্তার বেশি হলেও বাম দিকে তা ধীরে ধীরে হ্রাস পেয়েছে।

তাহলে এখন আসা যাক এই ব্যবস্থা কীভাবে কাজ করে সেই কথায়। ওয়াই-ফাই এর মাধ্যমে তথ্য আদান প্রদান করতে হলে সে সিস্টেমে অন্তত ট্রান্সিভার, এন্টেনা এবং একটি সম্প্রচার মাধ্যম থাকে। ট্রান্সিভার এবং এন্টেনা সাধারণত আপনার ঘরের ওয়াই-ফাই রাউটারে একসাথে থাকে। আর সম্প্রচার মাধ্যমে বাতাস তো আছেই।

ট্রানসিভার একটি প্রেরক যন্ত্র (Transmitter) এবং গ্রাহক যন্ত্রের (Receiver) সমন্বয়ে গঠিত। প্রেরক যন্ত্র একপ্রান্ত থেকে (উৎস) রেডিও তরঙ্গ প্রেরণ করে এবং গ্রাহক যন্ত্র অন্য প্রান্তে (গন্তব্য) সেই তরঙ্গ গ্রহণ করে। প্রেরক যন্ত্র আপনার কম্পিউটারের ডিজিটাল সংকেত (০ এবং ১ এর সমন্বয়ে গঠিত বিট) রেডিও কম্পাংকে পরিবর্তন করে এবং তা পরবর্তীতে বাতাসের মাধ্যমে আশপাশে ছড়িয়ে পড়ে। তবে এর আগে এমপ্লিফায়ারের মধ্য দিয়ে তরঙ্গের বিস্তারের মাত্রা বৃদ্ধি করা হয়, যাতে সংকেতের সঞ্চারণ ঠিকমত হয়।

গ্রাহক যন্ত্রের গঠনও প্রেরক যন্ত্রের ন্যায়, তবে কাজ হয় এর ঠিক উল্টো। নিচের ছবি দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন।

আপনার ঘরে বেতার ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে আপনি নিশ্চয়ই রাউটার নামে একটা ছোট বক্স রয়েছে। এই রাউটার আপনার অজান্তে ঘরে ট্রান্সিভার এবং গ্রাহক যন্ত্রের কাজ করে যাচ্ছে। এই ছোট যন্ত্রটি ইন্টারনেটের সাথে আপনার সংযোগ আদান প্রদান করেই যাচ্ছে।

একটি বেতার রাউটার কেবল একটি রাউটার, যা আপনার কম্পিউটারের (বা কম্পিউটারগুলিকে) সাথে সংযোগ স্থাপন করে তারের পরিবর্তে রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে। রাউটারে একটি খুব কম শক্তিসম্পন্ন রেডিও প্রেরক যন্ত্র এবং গ্রাহক যন্ত্র রয়েছে, যার পরিসর সর্বোচ্চ ৯০ মিটার বা ৩০০ ফুট পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে। তবে এর বেশিরভাগ নির্ভর করে আপনার দেওয়ালগুলো কী তৈরি করা এবং বাসার অন্যান্য ইলেকট্রিক্যাল সরঞ্জামের উপরে। রাউটার আপনার কম্পিউটারে যেকোনো কম্পিউটারে ইন্টারনেটের তথ্য পাঠাতে ও গ্রহণ করতে পারে (তবে বেতার নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত হতে কম্পিউটারে একটি রেডিও প্রেরক যন্ত্র এবং গ্রাহক যন্ত্র থাকতে হবে)। অধিকাংশ নতুন ল্যাপটপের মধ্যে নির্মিত ওয়্যারলেস কার্ড লাগানো থাকে।

ওয়াই-ফাই বলতে গিয়ে আপনি মাঝেমধ্যে হয়ত ওয়াই-ফাই হটস্পটকেই বুঝিয়ে থাকেন। একটি ওয়াই-ফাই হটস্পট হলো একটি সার্বজনীন স্থান, যেখানে আপনি আপনার কম্পিউটারকে ইন্টারনেটের সাথে সহজেই সংযুক্ত করতে পারেন। বিমানবন্দর, কফি বার, বুকশপ এবং ক্যাম্পাসগুলোতে আপনি যে হটস্পটগুলো খুঁজে পান সেগুলো এক বা একাধিক ওয়্যারলেস রাউটার ব্যবহার করে তৈরি করা, যাতে বৃহৎ এলাকার উপর বেতার নেট অ্যাক্সেস তৈরি করা যায়। নেদারল্যান্ডের টুইটে বিশ্ববিদ্যালয়টি বিশ্বের বৃহত্তম হটস্পটগুলোর একটি। ৬৫০টি আলাদা অ্যাক্সেস পয়েন্ট ব্যবহার করে, এটি সম্পূর্ণ ১৪০ হেক্টর (৩৫০ একর) ক্যাম্পাস জুড়ে একটি ওয়াই-ফাই হটস্পট তৈরি করেছে।

Source: https://roar.media/bangla/main/tech/how-wifi-works/

Pages: 1 ... 13 14 [15] 16 17 ... 19