Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - nafees_research

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 17
31
Nutrition and Food Engineering / Our nutrition profile
« on: April 05, 2019, 12:48:35 PM »
Our nutrition profile


32
IBM CEO Ginni Rometty: AI will change 100 percent of jobs over the next decade

IBM’s Chair, CEO and President Ginni Rometty has a powerful message for workers and employers in all strata of society: The Fourth Industrial Revolution is underway and it is shaping up to be one of the most significant challenges and opportunities of our lifetime. We are already seeing jobs, policies, industries and entire economies shifting as our digital and physical worlds merge.

According to the World Economic Forum, the value of digital transformations in the Fourth Industrial Revolution is estimated at $100 trillion in the next 10 years alone, across all sectors, industries and geographies.

“As a result, we face an imminent and profound transformation of the workforce over the next five to 10 years as analytics and artificial intelligence change job roles at companies in all industries,” Rometty said while giving a keynote address at the CNBC’s At Work Talent & HR: Building the Workforce of the Future Conference in New York on Tuesday, April 2. In February, the executive was appointed to Trump’s American Workforce Policy Advisory Board along with 24 other leaders.

While only a minority of jobs will disappear, the majority of roles that remain will require people to work with the aid of analytics and some form of AI and this will require skills training on a large scale, Rometty said.

“I expect AI to change 100 percent of jobs within the next five to 10 years,” the IBM CEO said.

Rometty’s call to action comes at a time when the AI skills gap and the future of work exhibit a growing sense of urgency. The technology sector accounts for 10 percent of U.S. GDP and is the fastest part of the American economy but there are not enough skilled workers to fill the 500,000 open high-tech jobs in the U.S., according to the Consumer Technology Association’s Future of Work survey. Yet the tech industry is concerned that school systems and universities have not moved fast enough to adjust their curriculum to delve more into data science and machine learning. As a result, companies will struggle to fill jobs in software development, data analytics and engineering.

“To get ready for this paradigm shift companies have to focus on three things: retraining, hiring workers that don’t necessarily have a four-year college degree and rethinking how their pool of recruits may fit new job roles,” Rometty said.

To address the issue IBM is investing $1 billion in initiatives like apprenticeships to train workers for what it calls “new collar” jobs – a phrase Rometty has coined for workers who have technology skills but not a four-year college degree. She noted the company is crafting 500 apprenticeships with the goal of making this “an inclusive era for employees.”

The “new collar” jobs could range from working at a call center to developing apps or becoming a cyber-analyst at IBM after going through a P-TECH (Pathways in Technology Early College High School) program, which takes six years starting with high school and an associate’s degree.

IBM is also helping to catalyze a national movement to close the skills gap. IBM and the Consumer Technology Association announced the launch of the CTA Apprenticeship Coalition, to create thousands of new apprenticeships in 20 states in January.

It provides frameworks for more than 15 different apprenticeship roles in fast-growing fields, including software engineering, data science and analytics, cybersecurity, mainframe system administration, creative design and program management. New apprenticeships will be modeled in large part on IBM’s successful apprenticeship program, which launched in 2017, is registered with the United States Department of Labor and has grown nearly twice as fast as expected.

The apprenticeships created by this Coalition provide pathways to tech jobs in all parts of the country — from Kansas to Minnesota to Louisiana — not just in traditional tech hubs on the coasts. Its goal is to widen the aperture when it comes to hiring by placing the focus on skills rather than specific degrees. From early-career professionals to mid-career transitions and everything in between, these apprenticeships represent a new pathway to success in 21st century careers, including the growing number of new collar roles where a traditional bachelor’s degree is not always required. They also offer an opportunity to build in-demand skills without taking on student debt.

Besides IBM, coalition members include Canon, Ford, Sprint, Toyota and Walmart.

In this tight job market, where the talent chase has become so intense, Rometty has some advice for employers at businesses of all sizes. It’s a shift in thinking she has adopted at IBM. “Bring consumerism into the HR model. Get rid of self service, and using AI and data analytics personalize ways to retrain, promote and engage employees. Also move away from centers of excellence to solution centers.”

As she sums it up: “In today’s world company’s need to be agile and realize their workforce is a strategic renewable asset. ”

Source: https://www.cnbc.com/2019/04/02/ibm-ceo-ginni-romettys-solution-to-closing-the-skills-gap-in-america.html?linkId=65610642&fbclid=IwAR1_wf55Unm8FIZFAx-cvMKzXGmKkRSeLXeiVIiMZDSlNK-2XRZC01jaah0

34
Bill Gates says robots that take your job should pay taxes
[/b]


Just because a worker isn't technically "alive" doesn't mean it can make money for nothing, according to Bill Gates.
In a recent interview with Quartz editor-in-chief Kevin Delaney, the billionaire philanthropist explained that robot labor should get taxed just like human labor — primarily as a way to maintain funding for society's many social services.

"You can't just give up that income tax," Gates said.

Economists and future-minded techies alike, Gates included, have been discussing the looming threat of robotic automation for several years now. An Oxford report from 2013 found robots could displace up to 50% of jobs between 2023 and 2033. And a 2015 McKinsey report concluded that today's technology could replace 45% of jobs right now.



The bulk of those lost jobs will likely come, at least initially, in telemarketing, tax preparation, and many retail service jobs. In 2016, a PwC report found drones could replace $126 billion worth of labor in infrastructure and agriculture.

If and when that happens, Gates doesn't believe the manufacturers of those robots should be able to reap the profits generated by the automated labor without paying some sort of tax. The system would be similar to how the government takes a portion of people's wages to support social programs, such as healthcare, infrastructure, and law enforcement.

Gates sees a robot tax as contributing to a portion of those programs whose workforces are in short supply. He points to the examples of teaching, elder care, and helping kids with special needs. With the proper training and fulfillment, people who lose their jobs to robots could fill those kinds of roles and have their salaries paid for by the tax.

At which point, Gates says, "you're net ahead."

More extreme solutions to robot automation include negative income tax — a system in which the government pays citizens based on their income, not the other way around — and universal basic income, where people receive a set amount of money each month just for being alive.

Gates has criticized simply giving people money based on the idea that one-time transfers are fleeting; however, he has not addressed the premise of guaranteed recurring payments over long periods of time.

Source: https://www.businessinsider.com/bill-gates-robots-pay-taxes-2017-2

35
Thank you for noticing the duplication of a 'para' and for reading out the article.

36
What it’s like to paint in space—according to a NASA astronaut

For many decades, a medical myth persisted that people were either “right brained” or “left brained.” The theory went that we are naturally predisposed to either being more creative (right-hemisphere dominant) or more mathematical (left-hemisphere dominant). But that phenomenon has now been thoroughly debunked, and its stereotypes along with it.

I and so many of my NASA colleagues are examples of how there is no reason to believe that scientists can’t be artists—or vice versa. Photography and music have always been a part of human spaceflight, and in early missions, cosmonaut Alexey Leonov did colored pencil sketches of orbital sunrise and charcoal portraits of his Apollo-Soyuz crew mates. As we’ve spent more time as humans not just working but living in space, the number of astronauts creating something artistic during their missions has continued to grow. Just recently, my friend Cady brought her flute and played it in space, and my friend Don created some really beautiful star trail photos using time-lapse photography.

My first spaceflight was in late 2009. I traveled to the International Space Station (ISS) on the Space Shuttle Discovery, and spent a little over three months living and working on the ISS. Every day in space was surprising—a different mix of science and maintenance and outreach activities. Some of the more exciting days might have included a spacewalk or flying the robotic arm to grab a cargo vehicle as it approached; other days included everything from fixing the toilet to testing our water to harvesting plants and mixing fuels in the combustion chamber.



As everything outside was moving too fast to paint, I printed a picture (yes, we have printers on board the ISS) of one of the most beautiful sights I’d ever seen: this little tiny chain of islands on the northern coast of Venezuela called Los Roques. I remember seeing them through the window of the space station, taking a photo, and thinking that someone had already taken a brush and painted the shape of a wave on the ocean. It was just gorgeous.

Every night just before going to bed, I would paint a little bit of those islands. I took up a watercolor paint set because I needed my paint to be non-toxic and in a solid form. But unlike normal watercolors, you can’t dip your brush in a cup of water—because there are no cups of water! The water would just float right out of the cup. Instead, you have drink bags—which are like big CapriSun bags—with a straw on the top.

Without a cup of water for my watercolors, painting was therefore a real process. To start, I would squirt out a tiny little ball of water from the drink bag and watch it float in front of me in zero gravity. Then I would put the brush toward it to touch it. What was extra cool was that even before I got the brush to the water, right before it made contact, the bubble of water seemed to move over to the brush, like it was attracted to the bristles in some way. I’m still not really sure what caused this—maybe something to do with surface tension or some weak static charge on the water or brush—but this vacuum effect was really interesting to watch.

Source: https://qz.com/1578231/what-its-like-to-paint-in-space-according-to-a-nasa-astronaut/

37
What Are The Top 5 Major Robotics Trends To Watch In 2019?

Robots have revolutionized the manufacturing and industrial world in recent decades, and are starting to make their move into the wider world of business as well as our homes, too.

While robotic workers are now commonplace in sectors such as automobile and electronics manufacturing, 2019 should see increasingly widespread adoption across food production, retail, healthcare, and distribution operations.

So here's my rundown of some of the top predictions of where automation and robotics are set to make waves in 2019.

Robots becoming increasingly commonplace in our homes

Besides robotic vacuum cleaners, the idea of home assistance robots has been slow to take off so far. Could that change in 2019? Indeed a whole breed of startups and established companies are betting that it will. From robotic companions for the elderly to robots designed to feed, play with and care for pets while their owners are out, the apparent applications are plentiful.

The breakthrough will come when companies have gathered and analyzed real-world data on what people do, and don’t, want from robots. Robotic vacuum cleaners took off because they filled a real need, and were able to affordably carry out the duty they were designed for. Other robotic assistants – such as mobile virtual assistants – have not been so warmly received.

Promising projects which will hopefully leave the starting blocks this year include Nvidia’s collaboration with Ikea, which aims to develop the first commercially successful robotic kitchen assistant. Could 2019 be the year that tech companies finally get the recipe for domestic robots right?


Delivery robots become a reality

Robotic delivery devices are hotly tipped to solve the “last mile” problem inherent to delivery operations – the most expensive stage of the delivery process where many small, individually packaged products must be precisely targeted to reach their final destinations on time and intact.

Some of these robots are designed to work in large indoor environments – such as Segway’s Loomo robot, which carries out the delivery of internal mail in workplace settings such as office blocks and shop floors.

Others, such as Nuro, designed by a team of Google engineers, will take to the streets to deliver fresh groceries as well as hot food, thanks to its separate heated and chilled cargo bays. Nuro is already carrying out deliveries in parts of Phoenix, Arizona – a hotbed of robotic activity thanks to its grid-like streets, which are also hosting the world’s first autonomous taxis, thanks to another Google spin-off, Waymo.

Of course, there is also the delivery of parcels via airborne drone delivery – which Amazon is working on, and JD.com has already put into practice for the past year. 

More of us will work alongside robots

Collaborative robots – or cobots – are the friendly face of workplace automation – not here to steal away our jobs, but to work alongside us, providing timely advice or simply mechanical muscle at times we need it.

As robotic technology becomes more widespread and deployment costs fall, businesses will realize that they can drive efficiency by deploying robots in environments which are unsafe or inhospitable to humans. Amazon's warehouse robots are a good example – as they bring items to human workers for packaging, only comparatively small areas of their vast real estate portfolios need to be heated and made comfortable for the humans who work alongside the machines.

Collaborative robots may also provide an avenue for companies to avoid the wrathful eye of the regulators, as they look to impose punitive measures on businesses which replace humans with automation. Politicians have already proposed “robot taxes” to cover these eventualities – fostering harmonious working relationships between humans and machines could be a trend which will set people’s minds at ease in 2019.

Robots on the Edge

Robots made ideal platforms for edge computing – building sensors into the extremities of automated systems, where machines meet the real-world environments they are built to influence.

During 2019 we can expect to see advances in smart sensors – sensors with inbuilt artificial intelligence – reducing the need for information to be sent to the cloud or centralized servers for processing, before it can be acted on.

Those leading the charge include Baidu – which has just unveiled China’s first open source edge computing platform, OpenEdge, which will allow developers of robots to empower their creations with AI, reducing CPU and bandwidth overheads used by cloud infrastructure. This should enable smarter, more autonomous robots to begin to appear in homes and industrial settings throughout 2019.

The Emergence of Open Standards for Robotics

Speaking of open source – 2019 should see a consolidation of the standardization needed for AI enabled robots to achieve mass market penetration. Regulators will have a part to play here, as frameworks are put in place to govern the ways that personal data can be collected and used by autonomous machines, including self-driving cars but also autonomous home and industrial assistants.

With the legal framework offering reassurance and trust, real innovation is likely to emerge from the open source community itself – already a hotbed of robotic development and activity. Amazon recently announced the launch of its AWS Robot Maker platform, built on the open source Robotic Operating System (ROS) standards. This lowering of the entry barrier towards involvement in the development and deployment of robots should mean more organizations of all shapes and sizes stand to benefit from the robot revolution over the coming 12 months.

Thank you for reading my post. Here at LinkedIn and at Forbes I regularly write about management and technology trends. To read my future posts simply join my network here or click 'Follow'. Also feel free to connect with me via Twitter, Facebook, Instagram, Slideshare or YouTube.

About Bernard Marr

Bernard Marr is an internationally best-selling author, popular keynote speaker, futurist, and a strategic business & technology advisor to governments and companies. He helps organisations improve their business performance, use data more intelligently, and understand the implications of new technologies such as artificial intelligence, big data, blockchains, and the Internet of Things.

LinkedIn has ranked Bernard as one of the world’s top 5 business influencers. He is a frequent contributor to the World Economic Forum and writes a regular column for Forbes. Every day Bernard actively engages his 1.5 million social media followers and shares content that reaches millions of readers.

Source: https://www.slideshare.net/BernardMarr/5-major-robotics-trends-to-watch-for-in-2019?ref=

38
Software Engineering / e-waste management policy being finalized
« on: March 04, 2019, 05:42:28 PM »
e-waste management policy being finalized
[/b]

In 2021, Bangladesh will produce 1,169.98 tons of mobile e-waste

Posts, Telecommunications and Information Technology Minister Mustafa Jabbar on Saturday said a policy on managing e-waste was at its final stage.

"It is currently with the law ministry," he said at a roundtable discussion on “E-waste management: A huge challenge for Bangladesh” organized by Telecom Reporters' Network Bangladesh in the city, reports UNB.

Bangladesh produced 42,000 tons of e-waste last year. Mobile phone operators alone produced 1,000 tons of e-waste during the period, according to Bangladesh Mobile Phone Importers Association (BMPIA).

"The government has prioritized this issue,”  Jabbar said. "We are looking into the matter sincerely and measures will be taken for proper management."

"E-waste can't be reduced. Our use of electronics and digital products will increase," the minister said. "City corporations and municipalities are now managing e-waste but after 10 years, union parishads will have to get involved in the management."

One of the participants at the discussion pointed out that there was no database on e-waste. Dhaka North City Corporation's Chief Waste Management Officer, Md Abdur Razzak, said 1,169.98 tons of mobile e-waste would be produced in 2021.

BMPIA President Md Ruhul Alam Mahbub said every year about 40 million mobile phones are imported.

"People will be interested [to cooperate] if e-waste is bought at good prices. E-waste collection will soon start at five spots in the city within one month. Collection points will eventually be set up across the country," he said.

Source: https://www.dhakatribune.com/bangladesh/2019/02/03/e-waste-management-policy-being-finalized

39
নতুন রূপে ফিরে আসছে বাটনযুক্ত হ্যান্ডসেট

সময়ের স্রোতধারায় সবকিছুই পরিবর্তনশীল। প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও এ কথা সমানভাবে প্রযোজ্য। জ্ঞান-বিজ্ঞানের অগ্রসরতা আর উদ্ভাবনী ব্যবসা কৌশলের আশীর্বাদে প্রযুক্তিপণ্যের ট্রেন্ড প্রতিনিয়তই পরিবর্তন হচ্ছে। ভিন্ন নকশা ও কার্যক্ষমতার প্রযুক্তিপণ্য ভোক্তাদের চিত্তকে আকৃষ্ট করতেই পারে। কিন্তু পুরনোর চাহিদা কি একেবারেই শেষ হয়ে যাবে?

সম্ভবত তা হওয়ার নয়। এ কারণেই টাচস্ক্রিনের যুগেও টিকে রয়েছে কি-বোর্ডযুক্ত মোবাইল ফোন। হয়তো হালের স্মার্টফোনের মতো এত কাটতি নেই, তবুও সেগুলো বাজার থেকে একেবারে হাওয়া হয়ে যায়নি।

স্মার্টফোনের উন্নয়ন নিয়ে গবেষণা হচ্ছে প্রচুর। নিত্যনতুন ফিচার দিয়ে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করার মাধ্যমে বাজার প্রতিযোগিতায় একে অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার নিরন্তর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে স্মার্টফোন নির্মাতারা। যখন ডিভাইসের স্ক্রিন টু বডি রেশিও বৃদ্ধির মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের বড় ডিসপ্লের সুবিধা দেয়ার চেষ্টা চালানো হচ্ছে, ঠিক সে সময় কি-বোর্ডযুক্ত মোবাইল ফোনকে নতুন রূপে হাজির করাটা কিছুটা অবাক করার মতো ঘটনাই বটে। কি-বোর্ড থাকা মানেই যে ‘আনস্মার্ট’ ফোন নয়, স্মার্টফোনেও বাটন যুক্ত করে যে একে আকর্ষণীয় করে তোলা যায়, কয়েকটি কোম্পানি সেটাই প্রমাণ করতে চাইছে।

এফ(এক্স) টেকনোলজি তাদের অন্যতম। স্পেনের বার্সেলোনায় সম্প্রতি অনুষ্ঠিত মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে (এমডব্লিউসি) লন্ডনভিত্তিক স্টার্টআপ কোম্পানিটি কোয়ার্টি কি-বোর্ডযুক্ত একটি স্লাইডিং স্মার্টফোন উন্মোচন করেছে। ফিজিক্যাল কি-বোর্ডের পাশাপাশি এতে ফুল টাচস্ক্রিন ডিসপ্লেও রয়েছে। এছাড়া ছবি তোলার সুবিধার্থে এফ(এক্স) টেকনোলজির প্রো ওয়ান স্মার্টফোনটির সাইড প্যানেলে একটি শাটার বাটনও রাখা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে এফ(এক্স) টেকনোলজি জানিয়েছে, গ্রাহকদের পুনরায় কি-বোর্ডের আমেজ দিতে তারা এ স্মার্টফোন উন্মোচন করেছে। কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা আদ্রিয়ান লি মো চিং বলেন, ‘বর্তমান যুগে প্রযুক্তিপণ্য থেকে বাটন তুলে দেয়ার ধারা চলছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও বেশকিছু পণ্যে এখনো বাটন রয়ে গেছে। আসলে ফিজিক্যাল বাটন চাপলে যে অনুভূতি হয়, ভার্চুয়াল কি-বোর্ডে তা পাওয়া যায় না।’

তিনি আরো বলেন, ‘হুয়াওয়ে ও স্যামসাং দুটি ফোল্ডেবল স্মার্টফোন প্রদর্শন করেছে। বিষয়টি প্রমাণ করে, গ্রাহকরা গতানুগতিক স্মার্টফোনের বদলে ভিন্ন কিছু চান। এ কারণে আমরা ভিন্ন কিছু নিয়ে হাজির হয়েছি। স্লাইডিং কি-বোর্ড ব্যবহারকারীদের যথেষ্টই আনন্দ দেবে বলে বিশ্বাস করি।’

এমডব্লিউসিতে প্রো ওয়ান স্মার্টফোনের প্রোটোটাইপ উন্মোচন করা হয়েছে। আগামী জুলাইয়ে ডিভাইসটি আনুষ্ঠানিকভাবে বাজারে ছাড়া হবে। এর দাম পড়বে ৬৪৯ ডলার।

শুধু এফ(এক্স) টেকনোলজিই নয়, এমডব্লিউসিতে ব্ল্যাকবেরি ও সুইস কোম্পানি পুংকটও বাটনযুক্ত হ্যান্ডসেট উন্মোচন করেছে। পুংকটের এমপি০২ ফোনটির নকশা করা হয়েছে তথাকথিত ‘ক্যাম্পেনিয়ন ফোন’ হিসেবে। আধুনিক স্মার্টফোনের তুলনায় এর ফাংশনালিটি অনেকটাই সীমিত।

সূত্র: বিবিসি/ http://bonikbarta.net/bangla/news/2019-03-04/189373/%E0%A6%A8%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%A8-%E0%A6%B0%E0%A7%82%E0%A6%AA%E0%A7%87-%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%B8%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%9F%E0%A6%A8%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4-%E0%A6%B9%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A1%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%9F/

40
জিআই স্বীকৃতি পেল ক্ষীরশাপাতি

দেশের তৃতীয় ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে জামদানি শাড়ি ও ইলিশের পর জিআই নিবন্ধন সনদ পেল ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের ক্ষীরশাপাতি আম’।

আজ রবিবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শফিকুল ইসলামের হাতে ক্ষীরশাপাতি আমের জিআই সনদ তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

logoEnglish
 
হোম  অনলাইনজাতীয় জিআই স্বীকৃতি পেল ক্ষীরশাপাতি আম

 

জিআই স্বীকৃতি পেল ক্ষীরশাপাতি আম
কালের কণ্ঠ অনলাইন    ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৬:৫৩ শেয়ার মন্তব্য()প্রিন্ট

জিআই স্বীকৃতি পেল ক্ষীরশাপাতি আম
অ- অ অ+

দেশের তৃতীয় ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে জামদানি শাড়ি ও ইলিশের পর জিআই নিবন্ধন সনদ পেল ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের ক্ষীরশাপাতি আম’।

আজ রবিবার বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. শফিকুল ইসলামের হাতে ক্ষীরশাপাতি আমের জিআই সনদ তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন

এ সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জের ‘ল্যাংড়া’ এবং ‘আশ্বিনা’ আমের অনুকূলেও দ্রুত নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে জিআই সনদ প্রদানের জন্য পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস্ অধিদপ্তরের (ডিপিডিটি) প্রতি নির্দেশনা দেন শিল্পমন্ত্রী।

এ সময় শিল্পমন্ত্রী বলেন, গুণগতমানের জন্য সারা বিশ্বে বাংলাদেশি আমের বিশাল বাজার রয়েছে। এ আম দিয়ে বাঙালি জাতির নিজস্ব পরিচয় বিশ্ব দরবারে তুলে ধরা সম্ভব। তিনি আম কেন্দ্রিক গবেষণা এবং কৃষিভিত্তিক শিল্পায়নে বর্তমান সরকারের সহায়তা অব্যাহত থাকবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, ক্ষীরশাপাতি আম জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় দেশে-বিদেশে আমটির ব্যাপক চাহিদা ও বাণিজ্যিক সম্ভাবনা তৈরি হবে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের আলাদা ব্র্যান্ডিংয়ের সুযোগ বাড়বে। তিনি এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত সবাইকে অভিনন্দন জানান।

ভারপ্রাপ্ত শিল্প সচিব মো. আবদুল হালিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তরের (ডিপিডিটি) রেজিস্ট্রার মো. সানোয়ার হোসেন ও সনদ গ্রহণকারী ড. মো. শফিকুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থার প্রধান এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ আমচাষী সমিতির নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Source: http://www.kalerkantho.com/online/national/2019/01/27/730689

41
২০১৮ সালের প্রযুক্তি ও বিশ্ববাজার
[/b]

এ বছর প্রযুক্তি বাজারে পতনের চেয়ে উত্থানই বেশি দেখা গেছে। মোবাইল ফোন, বিভিন্ন অ্যাপ, অফিস ও হোম গ্যাজেট থেকে শুরু করে ছোট থেকে ছোট প্রযুক্তিপণ্য বাজারে পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে আমাদের জীবনযাত্রায় কতটা পরিবর্তন এনেছে এই পণ্যগুলোর নামেই বোঝা যায়। তাছাড়া প্রযুক্তিখাতে আমরা কি কি পরিবর্তন দেখেছি তাও বছর শেষে আলোচনায় উঠে এসেছে। বিশ্ববিখ্যাত প্রযুক্তিবিষয়ক সংস্থাগুলো প্রকাশ করেছে ২০১৮ সালের প্রযুক্তি বাজারের আদ্যপান্ত।

বছরের প্রথমার্ধে

চলতি বছরের প্রথম ছয় মাস প্রযুক্তিপণ্য বাজারে কিছুটা ধীর গতিতেই মুক্তি পেয়েছে। অটোম্যাটিক স্যুটকেস, স্ন্যাপচ্যাট ছিল অন্যতম ‘ট্যাকনিক্যাল রিলিজ’। এছাড়া পুরনো কয়েকটি প্রযুক্তির হালনাগাদ করা হয়েছে। সচরাচর জীবনে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে বিভিন্ন রাইড শেয়ারিং অ্যাপ। কোয়ালকমকে ১২০ কোটি ডলার জরিমানা ধার্য করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। গুগল এসিস্ট্যান্টকে মানুষের মতো স্বাভাবিক কণ্ঠ দেওয়া হয়। নাইকির সেলফ্‌-লেসিং স্মার্ট শু-এর সাথে মানুষ পরিচিত হয়েছে। চালু হয়েছে ই-কমার্স ব্যবসা। শীর্ষ ধনীর তালিকায় এক নম্বরে উঠে আসেন জেফ বেজোস। ইনস্টাগ্রামে ভাইরাল হয় এক ফরাসির পরপর দুবার চেহারা প্রতিস্থাপন করানো ছবি। উবারের সেল্‌ফ ড্রাইভিং গাড়ি প্রথমবারের মতো দুর্ঘটনায় পড়ে। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারিতে ৮ দশমিক ৭ কোটি ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করে। ফেসবুক জানায় তারা ১৫৬ কোটি স্প্যাম পোস্ট ও প্রায় ১২৭ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট সরিয়ে ফেলেছে।

বছরের দ্বিতীয়ার্ধে

প্রযুক্তি বাজারে মূল পরিবর্তন ঘটেছে পরবর্তী ছয় মাসে। এসময় ফেসবুকের নিয়মিত গ্রাহক সংখ্যা ১৪৭ কোটিতে পৌঁছেছে অন্যদিকে গ্রাহকের অভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয় গুগল প্লাসের। ইলেকট্রিক ইমপ্লান্ট ব্যবহার করে আবারও হাঁটতে শুরু করে এক মানুষ। ইউরোপ ও এশিয়ায় দুইবার হাজার কোটি ডলার জরিমানার মুখে পড়ে গুগল। চালু হয় অত্যাধুনিক প্রযুক্তির  বোয়িংয়ের তৈরি ড্রিমলাইনার ৭৮৭। নেটফ্লিক্সে যোগ করা হয় স্মার্ট ডাউনলোড ফিচার। এলজি তাদের রোল্যাবল ওলেড টিভি’র হালনাগাদ করে। বাজারে আসে স্যামসাং গ্যালাক্সি নোট ৯, অ্যাপলের আইফোন টেনএস, আইফোন এক্স, এক্স-ম্যাক্স, মটোরোলার মটো জেড৩, গুগলের পিক্সেল ৩ এক্সএল, ওয়ানপ্লাসের ওয়ানপ্লাস ৬টি, হুয়াওয়ের মেট ২০।

দৃষ্টিশক্তিহীনতাকে জয় করেছে ইসাইট প্রযুক্তি। গ্রাহকরা অ্যান্ড্রয়েডের এখন পর্যন্ত সর্বশেষ সংস্করণ “অ্যান্ড্রয়েড পাই” পেয়েছে। বিশ্বের প্রথম ট্রিলিয়ন ডলারের মাইনফলক স্পর্শ করেছে অ্যাপল। হ্যাক্‌ড হয়েছে ফেসবুক। ২০টি গেমসহ খুদে এক গেমিং কনসোলের ঘোষণা দেয় সনি। অটোম্যাটিক ড্যান্সিং, ওয়াকিং, পুলিশ রোবট বাজারে আনা হয়েছে। মঙ্গলে অবতরণ করেছে রোবট।

রেডিও-ধাঁচের অন-ডিমান্ড অডিও নিউজফিড চালু করে গুগল। টানা চতুর্থ প্রান্তিকের মতো বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের বিক্রি কমতে থাকে। সৈনিকদের ফিটনেস ট্র্যাকার যন্ত্র ও স্মার্টফোন অ্যাপ ব্যবহারে কড়া নিয়ম আরোপ করে পেন্টাগন। কানাডার জেল থেকে জামিনে মুক্তি পান হুয়াওয়ের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা।

বাজার মূল্যের দিক থেকে অ্যামাজনকে হটিয়ে আবারও দ্বিতীয় অবস্থান দখল করেছে মাইক্রোসফট। অ্যাপল, অ্যালফাবেট, অ্যামাজন, মাইক্রোসফট, ফেসবুক -বিশ্বের শীর্ষ পাঁচ প্রতিষ্ঠানের বাজারমূল্য হারিয়েছে মোট ৭৫০০ কোটি মার্কিন ডলার। ফেসবুক নিয়ে চাপের মুখে পড়েছে মার্ক জুকারবার্গ। ফেসবুকের মেসেঞ্জার ও ইনস্টাগ্রামে আনা হয়েছে নতুন হালনাগাদ। সরানো হয়েছে গুগল ইনবক্স, বন্ধ হয়েছে গুগল হ্যাংআউটস্‌। আমাজনের অ্যালেক্সা-নির্ভর স্পিকারে অ্যাপল মিউজিক সুবিধা দেওয়া হয়। প্রতারণা কমাতে চেহারা শনাক্তকরণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে চীন। গুগলের ভিডিও চ্যাট অ্যাপ ডুয়ো ১০০ কোটির বেশিবার ডাউনলোড করা হয়েছে।

স্মার্টফোন বিক্রিতে মার্কিন প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাপলকে পেছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে চীনা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে; প্রথম স্থানে রয়েছে স্যামসাং। কমেছে বিটকয়েনের মূল্য। দক্ষিণ কোরিয়ায় ফাইভজি চালু করার মাধ্যমে প্রথমবারের মত পঞ্চম প্রজন্মের পথে পা দিয়েছে বিশ্ব।

Source: http://bangla.fintechbd.com/2018/12/31/%E0%A7%A8%E0%A7%A6%E0%A7%A7%E0%A7%AE-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%93-%E0%A6%AC%E0%A6%BF/?fbclid=IwAR1CHAIkME3xaE5S8ri5gfnPLNs6TTDU2FwRZpBs52aIHVB2-tRaXyGH--g

42
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা হুমকি নাকি সম্ভাবনা?

           -ড. মো. সবুর খান, চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি 

সবকিছু ভেঙে পড়ছে। রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজ, সংস্কৃতি, সম্পর্ক, বন্ধন, বন্ধুত্ব, সংসার, সভ্যতা থেকে শুরু করে সবকিছু। চাকরির বাজারে কান পাতুন, সেখানেও ভাঙনের শব্দ শোনা যাচ্ছে। তো সবকিছু ভেঙেচুরে কি বিলীন হয়ে যাচ্ছে? না, বরং ভেঙেচুরে নতুন অবয়ব নিয়ে দাঁড়াচ্ছে। প্রযুক্তির প্রাচুর্য আর বিজ্ঞানের অনন্য উৎকর্ষ আমাদের এমন এক সময়ের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে, সেখানে প্রচলিত-পুরোনো সব ধ্যানধারণা বাতিলের খাতায় চলে যাচ্ছে। নতুন নতুন উদ্ভাবন যেন গলা বাড়িয়ে বলছে, ‘এসেছে নতুন শিশু, ছেড়ে দিতে হবে স্থান।’

একটু ভালো করে লক্ষ করলে দেখা যাবে, চাকরির বাজারেও এসেছে এক ‘নতুন শিশু’। তার নাম ‘রোবট’ এবং ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’। এই নবতর শিশুদের দুরন্তপনায় চাকরির নিয়োগ-প্রক্রিয়ায় চলছে এক প্রগাঢ় বিপ্লব। সেই বিপ্লবের সঙ্গী যদি আপনি না হতে পারেন, হে নতুন যুগের চাকরিপ্রত্যাশী যুবক, তবে আপনার পরাজয় অনিবার্য। তাই আসুন, সময় থাকতেই রোবট এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স তথা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে স্বাগত জানাই।

সারা বিশ্বে শুরু হয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জয়জয়কার। বিশেষ করে, চাকরির নিয়োগ-প্রক্রিয়ায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগ একটি আবশ্যিক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী ম্যাগাজিন ফরচুন-এ প্রকাশিত বিশ্বের শীর্ষ ৫০০ প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মী নিয়োগ-প্রক্রিয়ায় অটোমেশন পদ্ধতির ব্যবহার শুরু করেছে বলে সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। ওই প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, চাকরিপ্রত্যাশীদের সিভি থেকে বিভিন্ন শব্দ বিশ্লেষণের মাধ্যমে সবচেয়ে উপযুক্ত প্রার্থী খুঁজে বের করছে রোবট! রোবট ছাড়াও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং মেশিন লার্নিং টুল ব্যবহারের মাধ্যমে কর্মী নিয়োগের পদ্ধতি বিশ্বের বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। যেমন সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাকাউন্ট বিশ্লেষণের মাধ্যমে ব্যক্তির চরিত্র ও বুদ্ধিমত্তা নির্ধারণপূর্বক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ব্যবস্থাপক নিয়োগ দেয় ডিপসেন্স নামের একটি প্রতিষ্ঠান। সানফ্রান্সিসকো ও ভারতভিত্তিক এ প্রতিষ্ঠানটি জানাচ্ছে, তারা ব্যক্তির ফেসবুক, টুইটার, লিংকডইন ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাকাউন্ট বিশ্লেষণের কাজে ডেটা সায়েন্স ব্যবহার করে থাকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি কী ধরনের ছবি পোস্ট করছেন, কী লিখছেন, কী ধরনের খবর শেয়ার করছেন, আপনার প্রোফাইলের ছবিটা কেমন ইত্যাদি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে বিশ্লেষণ করে আপনার আচরণগত দক্ষতা নির্ণয় করা সম্ভব।



এ ছাড়া এখন ব্যক্তির কণ্ঠস্বর, কথা বলার ভঙ্গি, শব্দচয়ন এবং কথা বলার সময় চেহারার পরিবর্তন বিশ্লেষণ করেও চাকরি দেওয়া হচ্ছে! নিয়োগ-প্রক্রিয়ায় এ নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করে রীতিমতো ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে হায়ার ভিউ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ব্যাপারটা সরেজমিনে দেখতে ও বুঝতে হায়ার ভিউয়ের কার্যালয় পরিদর্শনে গিয়েছিলেন জনপ্রিয় টেলিভিশন অনুষ্ঠান মুভিং আপস্ট্রিম অ্যাবাভ-এর প্রতিনিধি জেসন বেল্লিনি। যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ জর্ডানে অবস্থিত কার্যালয়টি পরিদর্শনের পর জেসন বেল্লিনি ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল-এ লিখেছেন, প্রতিষ্ঠানটি ইউনিলিভার, হিলটনসহ বিশ্বের অর্ধশতাধিক কোম্পানির জন্য ডিজিটাল ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে কর্মী বাছাই করে দিয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে তারাও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে। তবে তাদের প্রয়োগটা ভিন্ন। অনলাইনে সাক্ষাৎকার গ্রহণের সময় সাক্ষাৎকারদাতার কণ্ঠ, উচ্চারণ, শব্দচয়ন, বাচনভঙ্গি, মুখভঙ্গি ইত্যাদি বিশ্লেষণ করে সেই ব্যক্তির আইকিউ, মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতা শনাক্ত করে থাকে হায়ার ভিউ। হায়ার ভিউয়ের প্রধান মনোবিজ্ঞানী নাথান মনড্রাগন বলছেন, তাঁরা এ কাজে এমন একটি সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকেন, যার মাধ্যমে ব্যক্তির হাসি, মুখভঙ্গি, চোখের পলক ফেলানো ইত্যাদি বিশ্লেষণ করা যায়। এর মাধ্যমে ওই ব্যক্তির আবেগ, অনুভূতি ও ব্যক্তিত্ব নির্ধারণ করা যায়। সাক্ষাৎকারদাতা কথা বলার সময় স্বতঃস্ফূর্তভাবে কথা বলছেন নাকি ভয় নিয়ে কথা বলছেন, সঠিক তথ্য দিচ্ছেন নাকি ভুল তথ্য দিচ্ছেন, সত্য বলছেন নাকি মিথ্যা বলছেন—এই সবকিছু তাঁর মুখভঙ্গি, কণ্ঠস্বর ও শারীরিক ভাষা দেখে শনাক্ত করে ফেলে ওই সফটওয়্যার। সফটওয়্যারটির নাম ফেস অ্যানালাইজার।

সুতরাং, চাচা-মামার বদৌলতে চাকরি পাওয়ার দিন সমাহিত। আপনি কতটা পরিশ্রমী, কতটা ত্যাগী, কতটা নিবেদিতপ্রাণ, কতটা ভদ্র, কতটা দলগত কাজে পারদর্শী—এসব ব্যাপারে সুপারিশ করার জন্য এখন আর চাচা-মামার প্রয়োজন নেই। এখন রোবটই এসব কাজে সবচেয়ে পারদর্শী। রোবট এখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগের মাধ্যমে বের করে আনছে আপনার ভেতরের সব খবরাখবর। আপনি ঠিক কোন কাজের উপযুক্ত, তা নির্ধারণ করে দিচ্ছে ডেটা সায়েন্স, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, মেশিন লার্নিং টুল ইত্যাদি।

আপনি আপনার ফেসবুক, টুইটার, লিংকডইন, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদিতে কী পোস্ট করছেন, কী শেয়ার করছেন, কোন কোন সাইট ভিজিট করছেন, কী ধরনের গ্রুপে বা পেজে সময় কাটাচ্ছেন, কোন কোন হোটেল সার্চ করছেন, কী ধরনের ই-কমার্স সাইট ভিজিট করছেন—এই সবকিছুর অনলাইন ফুটপ্রিন্ট ভার্চ্যুয়াল জগতে থেকে যাচ্ছে। ফলে আপনার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য, পছন্দ, অপছন্দ সবকিছুই অনলাইন থেকে বের করা সম্ভব। আমরা অনেকেই ভেবে থাকি যে আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাকাউন্টে প্রাইভেসি দেওয়া আছে, সুতরাং আমি কোথায় কী দেখছি, কী ছবি ডাউনলোড করছি, কোন পোস্টে লাইক দিচ্ছি, কোন পোস্টে কমেন্ট করছি—এসব বোধ হয় কেউ দেখছে না। এ ধারণা সঠিক নয়। কারণ, আপনার সব ডেটাই উন্মুক্ত, এখানে প্রাইভেট ডেটা বলে কিছু নেই। আপনি লক্ষ করে দেখবেন যে যখনই আপনি কোনো অ্যাপ ইনস্টল করেন অথবা কম্পিউটারে কোনো সাইটে নিবন্ধন করেন, তখন শুরুতেই বলা হয় যে তাদের টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন অনুযায়ী তারা আপনার ডেটা ব্যবহার করবে। আপনার ডেটার ওপর আপনার কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। সোশ্যাল মিডিয়া প্রতিষ্ঠানগুলো আপনার ডেটা যাচ্ছেতাইভাবে ব্যবহার করতে পারে এবং তারা তা করছেও। গত মার্চে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য একটি রাজনৈতিক পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের কাছে চলে যাওয়ার কথা স্বীকার করে এর জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ফেসবুকের সহ–প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। এর আগে অভিযোগ ওঠে, কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামের একটি প্রতিষ্ঠান ফেসবুক অ্যাপের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে তাদের রাজনৈতিক গ্রাহকের জন্য এসব তথ্য ব্যবহার করেছে। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকার সেই রাজনৈতিক গ্রাহক আর কেউ নন, স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প! গত মার্কিন নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে প্রচারণার জন্য কনটেন্ট তৈরিতে ওই সব তথ্য ব্যবহার করেছিল কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা।

অতএব, বলা নিষ্প্রয়োজন যে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমাদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা এখন সময়ের দাবি।

লেখক: ড. মো. সবুর খান ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান

Source of the news: https://www.prothomalo.com/opinion/article/1569775/%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%AE-%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%B9%E0%A7%81%E0%A6%AE%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A6%BE?fbclid=IwAR00cecZcp00pegTNrgICazdbLQ_CWspcqxvWtOsDAR1ajGN7b27sxDxlcc

43
অস্ট্রেলিয়ায় ফেসবুক-গুগলের জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থা গঠনের সুপারিশ

ক্তিগত গোপনীয়তা থেকে সংবাদ প্রচার সর্বত্রই টেক জায়ান্টদের আধিপত্য বাড়ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের ক্রমবর্ধমান প্রভাবের লাগাম টেনে ধরতে সোচ্চার বিভিন্ন দেশের আইনপ্রণেতারা। এরই ধারাবাহিকতায় এবার অস্ট্রেলিয়ার অনলাইন বিজ্ঞাপন ও সংবাদ বাজারে ফেসবুক ও গুগলের আধিপত্য নিয়ন্ত্রণে একটি নতুন নিয়ন্ত্রক সংস্থা স্থাপনের সুপারিশ এসেছে। গতকাল অস্ট্রেলিয়ান কম্পিটিশন অ্যান্ড কনজিউমার কমিশনের (এসিসিসি) প্রাথমিক প্রতিবেদনে এ সুপারিশ করা হয়। খবর রয়টার্স।

অস্ট্রেলিয়ার প্রতিযোগিতা-বিষয়ক ওয়াচডগটির এ প্রতিবেদন সবার কাছেই আগ্রহের বিষয়। মিডিয়া পুনর্গঠনের বৃহৎ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এক বছর আগে দেশটির সরকার এসিসিসিকে এ প্রতিবেদন তৈরির নির্দেশ দেয়। ওই সময়ে জানানো হয়, ২০১৯ সালের জুনে এ ব্যাপারে চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়া যেতে পারে।

প্রাইভেট ইউজারদের তথ্যে পুলিশকে প্রবেশাধিকার দিতে টেক কোম্পানিগুলোকে বাধ্য করার বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ায় আইন পাসের কিছুদিন পরই এ সুপারিশের কথা জানা গেল। এ আইন প্রণয়নের আরেকটি কারণ হলো, টেক জায়ান্টদের ব্যবসায়িক আচরণ এবং তথাকথিত ফেক নিউজ নিয়ে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগ।

সিডনিতে এসিসিসি চেয়ারম্যান রড সিমস সাংবাদিকদের বলেন, আপনি যখন একটি নির্দিষ্ট ধাপে উঠে আসবেন এবং বাজারে আপনার প্রভাব থাকবে, যা গুগল ও ফেসবুক উভয়েরই আছে, তখন বিশেষ দায়িত্ব পালন ও অতিরিক্ত নজরদারির প্রয়োজন হয়।

তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়ার ওয়েব সার্চ বাজারে গুগলের অংশীদারিত্ব ৯৪ শতাংশ। বাজারে বিরাট অংশীদারিত্ব ও বিজ্ঞাপনের ক্রম নির্ধারণে অস্বচ্ছ পদ্ধতির সুবাদে এ ধরনের প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞাপনদাতাদের ওপর তাদের ব্যবসাকে অগ্রাধিকার দেয়ার সুযোগ ও ক্ষমতা লাভ করে।

তিনি আরো বলেন, সংবাদ প্রচারের ক্ষেত্রেও গুগল ও ফেসবুকের প্রভাব বিশাল। প্রস্তাবিত নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাজ হবে সবসময় নজর রাখা এবং সক্রিয়ভাবে কিছু স্বচ্ছতা আনা। এসিসিসি টেক কোম্পানিগুলো কীভাবে বিজ্ঞাপন ও সংবাদের ক্রম সাজায়, তার অনুসন্ধানের ক্ষমতা নতুন নিয়ন্ত্রকের কাছে হস্তান্তরেরও প্রস্তাব দিয়েছে।

সিমস জানান, এ রিপোর্ট তৈরি করতে গিয়ে তারা অস্ট্রেলিয়ায় ভোক্তা বা ব্যক্তিগত গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের সম্ভাব্য পাঁচটি তদন্তের বিষয়ে আগ্রহী হয়েছেন। তবে তিনি এর সঙ্গে জড়িত প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিচয় প্রকাশ করেননি।

এসিসিসির সুপারিশের বিষয়ে পৃথক বিবৃতিতে ফেসবুক ও গুগল জানায়, তারা এসিসিসির সঙ্গে কাজ করা অব্যাহত রাখবে। এরই মধ্যে তারা ফেক নিউজের বিস্তার ঠেকাতে আরো পদক্ষেপ নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তারা জানিয়েছে, বিজ্ঞাপনদাতাদের সস্তা পদ্ধতিতে বিরাট শ্রোতার কাছে পৌঁছে দেয়ার পাশাপাশি ইউজারদের বৈশ্বিক সংবাদ প্রবেশাধিকার দেয়া হচ্ছে।

অনলাইন প্রতিযোগীদের চাপের মুখে থাকা নাইন এন্টারটেইনমেন্ট এবং নিউজ করপোরেশনের স্থানীয় শাখার মতো অস্ট্রেলিয়ার প্রথাগত মিডিয়া কোম্পানিগুলো পৃথক বিবৃতিতে এসিসিসির এ সুপারিশকে স্বাগত জানিয়েছে।

সিডনির মোনাশ ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক মার্গারেট সিমন্স বলেন, এর মাধ্যমে টেক কোম্পানিগুলোকে নিয়ন্ত্রণ কাঠামোর মধ্যে আনা যাবে।

Source: http://bonikbarta.net/bangla/news/2018-12-11/179767/%E0%A6%85%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95-%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%97%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95-%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%BE-%E0%A6%97%E0%A6%A0%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%B6/

44
আইটিইউর প্রতিবেদন : চলতি বছরেই বিশ্বের ৫১% মানুষ ইন্টারনেটের আওতায়
[/b][/size]

চলতি বছর শেষে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ৫১ দশমিক ২ শতাংশ (৩৯০ কোটি মানুষ) ইন্টারনেট সেবার আওতায় আসবে। মোবাইল ইন্টারনেটের পরিসর বৃদ্ধি ও সাশ্রয়ী সেবার কারণে অনলাইন জনসংখ্যার এ অর্জন সম্ভব হতে যাচ্ছে। তবে বৈশ্বিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সিংহভাগই হবে উন্নত দেশের নাগরিক। গত শুক্রবার জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে। খবর পিটিআই ও ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস।

আইটিইউর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০০৫ সালে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর ৫১ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট সেবার আওতায় ছিল, যা চলতি বছর শেষে ৮০ দশমিক ৯ শতাংশে পৌঁছবে। অন্যদিকে ২০০৫ সালে বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর ৭ দশমিক ৭ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট সেবার আওতায় ছিল, যা চলতি বছর শেষে ৪৫ দশমিক ৩ শতাংশে পৌঁছবে।

স্মার্টফোন ও ট্যাবলেটের মতো ইন্টারনেট-সংশ্লিষ্ট মোবাইল ডিভাইসের কারণে অনলাইন জনসংখ্যা বাড়ছে দ্রুত। তবে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোয় ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাড়লেও উন্নয়নশীল ও স্বল্প উন্নত দেশগুলোয় প্রত্যাশা অনুযায়ী ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাড়ছে না। এখনো ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বিবেচনায় উন্নত দেশগুলোর তুলনায় বহুলাংশে পিছিয়ে রয়েছে উন্নয়নশীল ও স্বল্প উন্নত দেশগুলো।

বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় ইন্টারনেট ব্যবহারে সবচেয়ে পিছিয়ে আছে আফ্রিকা মহাদেশের দেশগুলো। ২০০৫ সালে আফ্রিকা অঞ্চলের

মাত্র ২ দশমিক ১ শতাংশ মানুষ ইন্টারনেট সেবার আওতায় ছিল, যা চলতি বছর শেষে ২৪ দশমিক ৪ শতাংশে পৌঁছবে। আফ্রিকা অঞ্চলের দরিদ্র ও অত্যন্ত নাজুক দেশগুলোর নাগরিকরা ইন্টারনেট ব্যবহারে এখনো অনেক পিছিয়ে রয়েছে।

আইটিইউর মহাসচিব হাউলিন ঝাউ বলেন, বিশ্বব্যাপী ইন্টারনেট সেবা সহজলভ্য হয়েছে। এর সুবাদে চলতি বছরই বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশি ইন্টারনেটের আওতায় আসতে যাচ্ছে, যা বৈশ্বিক ইনফরমেশন সোসাইটির জন্য দারুণ অর্জন।

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী এখনো অনেক মানুষ ডিজিটাল অর্থনীতির সুফল থেকে বঞ্চিত রয়ে গেছে। বিশেষ করে আফ্রিকা অঞ্চলে ইন্টারনেট সেবার বাইরে থাকা মানুষদের বড় একটি অংশ নারী। এছাড়া উন্নয়নশীল দেশগুলোর স্বল্প শিক্ষিত, দরিদ্র ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসকারীদের মধ্যে এখনো ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ-সুবিধা পৌঁছায়নি।

২০২০ সালের মধ্যে বৈশ্বিক জনসংখ্যার ৬০ শতাংশকে অনলাইনের আওতায় আনার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে জাতিসংঘ। এক্ষেত্রে নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা থেকে এখনো অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছে সংস্থাটি।

আইটিইউর তথ্যমতে, চলতি বছর শেষে বৈশ্বিক ফিক্সড-ব্রডব্যান্ড সংযোগ ১১০ কোটিতে পৌঁছবে। এছাড়া ফিক্সড-টেলিফোন সংযোগ ৯৪ কোটি ২০ লাখে পৌঁছবে। ২০০৭ সালে সক্রিয় মোবাইল-ব্রডব্যান্ড সাবস্ক্রিপশন পেনিট্রেশনের হার ছিল প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৪, যা চলতি বছর শেষে ৬৯ দশমিক ৩-এ পৌঁছবে। অন্যদিকে ২০০৭ সালে সক্রিয় মোবাইল-ব্রডব্যান্ড সাবস্ক্রিপশন ছিল ২৬ কোটি ৮০ লাখ, যা চলতি বছর ৫৩০ কোটিতে পৌঁছবে। উন্নয়নশীল দেশগুলোয় চলতি বছর শেষে মোবাইল-ব্রডব্যান্ড পেনিট্রেশনের হার প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৬১তে পৌঁছবে।

আইটিইউর প্রতিবেদন অনুযায়ী, বৈশ্বিক জনসংখ্যার ৯৬ শতাংশই মোবাইল সেলুলার নেটওয়ার্ক কাভারেজের মধ্যে বসবাস করছে। এছাড়া ৯০ শতাংশ মানুষ এখন থ্রিজি কিংবা তার চেয়ে দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। চলতি বছর শেষে বিশ্বের ৬০ শতাংশ বাসাবাড়িতে ইন্টারনেটে প্রবেশের সুবিধা থাকবে। ২০০৫ সালে বিশ্বের মাত্র ২০ শতাংশ বাসাবাড়িতে ইন্টারনেটে প্রবেশের সুবিধা ছিল।

বলা হচ্ছে, মানুষ এখন অনলাইনে যায়, এটি বলা ঠিক হবে না। চলতি বছর অসংখ্য মানুষ অনলাইনে থেকেছেন। বরং তৃতীয় ও চতুর্থ প্রজন্মের দ্রুতগতির নেটওয়ার্ক সেবা থ্রিজি ও ফোরজির সম্প্রসারণের কারণে বিশ্বব্যাপী বিপুলসংখ্যক মানুষ নতুন করে ইন্টারনেটে যুক্ত হয়েছেন।

Source: http://bonikbarta.net/bangla/news/2018-12-10/179642/%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%87%E0%A6%89%E0%A6%B0-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A6%E0%A6%A8-:--%E0%A6%9A%E0%A6%B2%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%AC%E0%A6%9B%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A7%AB%E0%A7%A7--%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B7-%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%9F%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%86%E0%A6%93%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A7%9F/

45
টোকিও অলিম্পিকের পদক তৈরি হবে ই-বর্জ্য থেকে

প্রাচীন গ্রীসে অলিম্পিক গেমস যখন শুরু হয়েছিল তখন বিজয়ীদের মাথায় পরিয়ে দেওয়া হতো জলপাই গাছের পাতা আর কাণ্ডে নির্মিত জয়মাল্য। এই জয়মাল্য ছিল বীরত্বের প্রতীক।

১৮৯৬ সালে যখন আধুনিক অলিম্পিক শুরু হয় তখন বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদেরকে পদক দেওয়ার নিয়ম চালু করা হয়। তবে তখন প্রতিযোগিতায় প্রথম হওয়া ব্যক্তিকে রৌপ্য আর রানার্স-আপ প্রতিযোগীকে দেওয়া হতো তামার পদক। ১৯০৪ সালের অলিম্পিক গেমস থেকে কোনো প্রতিযোগীতায় প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় হওয়া প্রতিযোগীদের যথাক্রমে স্বর্ণ, রৌপ্য এবং ব্রোঞ্জের পদক দেওয়ার নিয়ম চালু করা হয়।

বর্তমানে একেকটি অলিম্পিক স্বর্ণপদকে থাকে ৫৫০ গ্রাম রৌপ্য আর ছয় গ্রাম স্বর্ণ। রৌপ্যপদকে থেকে ৫০৯ গ্রাম রৌপ্য এবং ৪১ গ্রাম তামা দিয়ে। সর্বশেষ, ব্রোঞ্জ পদক বানানো হয়ে থাকে তামা, টিন আর দস্তা বিভিন্ন অনুপাতে মিশিয়ে।

২০২০ সালে জাপানে অনুষ্ঠিত হবে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক এবং প্যারাঅলিম্পিক। দেশ-বিদেশের হাজারো প্রতিযোগী অংশ নেবে অলিম্পিকের এই আসরে। প্রতিটি প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের গলায় ঝুলবে বিজয়ের জয়মাল্য। আর এই লক্ষ্যে জাপানের অলিম্পিক গেমস আয়োজন কমিটিকে তৈরি করতে হবে পাঁচ হাজার স্বর্ণ, রৌপ্য আর ব্রোঞ্জ পদক।



কিন্তু এই পদকগুলো সরাসরি নিরেট স্বর্ণ থেকে বানানো হচ্ছে না। বিজয়ীদের গলায় ঝুলবে এমন প্রতিটি পদকই নির্মিত হবে ইলেকট্রনিক বর্জ্য বা ই-বর্জ্য থেকে। হিটাচি, সনি, মিতসুবিশি আর প্যানাসনিক ইত্যাদি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের আতুড়ঘর জাপানে অন্যতম প্রধান সমস্যা ই-বর্জ্য। আর ই-বর্জ্যের ব্যাপারে সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে জনসাধারণের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে তাদের অপ্রয়োজনীয় ই-বর্জ্য।

ইলেকট্রনিক বর্জ্যের ভেতর, হোক সেটি মোবাইল, কম্পিউটার কিংবা ছোটোখাটো ক্যালকুলেটর, এদের প্রতিটিতেই থাকে খুব অল্প পরিমাণ স্বর্ণ, রৌপ্য, তামা, টিন, দস্তার মতো ধাতু। তৈরির সময়ই এই ধাতুগুলো থাকে ইলেকট্রনিক যন্ত্রের অভ্যন্তরে। জাপান যেহেতু খনিজ সম্পদে অপ্রতুল তাই জনগণের হাতে জমা থাকা বিপুল পরিমাণ ইলেকট্রনিক বর্জ্য সংগ্রহ করে সেখান থেকে মূল্যবান ধাতু সংগ্রহ করে অলিম্পিকের পদক বানানোর পদক্ষেপ নেয় অলিম্পিক আয়োজকরা।

পৃথিবীর প্রায় সব বড় শহরের অন্যতম প্রধান সমস্যা ইলেকট্রনিক বর্জ্য। প্রতিদিন নতুন ইলেকট্রনিক পণ্য বাজারে আসার সাথে সাথে গ্রাহকরা পরিত্যাগ করছে পুরোনো পণ্যটি। তৈরি হচ্ছে ইলেকট্রনিক পণ্যের বিশাল জঞ্জাল। এই জঞ্জালের আড়ালে লুকিয়ে থাকা মূল্যবান ধাতুর খনিকে অনেক বিশ্লেষক তাই ‘আরবান মাইন’ বা ‘শহুরে খনি’ নামে অভিহিত করে থাকেন।

তবে এই ই-বর্জ্যে মূল্যবান ধাতুর পাশাপাশি ভারী ধাতুর মতো বিষাক্ত পদার্থও থাকে। ঠিকভাবে এদেরকে আলাদা করতে না পারলে এরা খাদ্যশৃংখলে ঢুকে যেতে পারে এবং ঘটাতে পারে মারাত্মক বিপর্যয়।

২০১৬ সাল নাগাদ পৃথিবীজুড়ে জমা হয়েছে প্রায় ৪৪.৭ মিলিয়ন মেট্রিক টন ই-বর্জ্য। প্রতি বছর এই বর্জ্যের পরিমাণ ৩-৪ শতাংশ করে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই বর্জ্যের তালিকায় পুরোনো মোবাইল ফোন থেকে শুরু করে ফ্রিজ, টেলিভিশন, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার, কম্পিউটার সবই আছে। তাই পৃথিবীর স্বার্থে এদেরকে পুনরায় ব্যবহারের বিকল্প নেই।

জাপানে ই-বর্জ্যকে কাজে লাগিয়ে অলিম্পিকের পদক তৈরির ব্যাপারটি আসলেই অসাধারণ। আর এই কাজে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে টোকিও অলিম্পিকের আয়োজক কমিটি দেশব্যাপী জনগণকে তাদের ঘরে পড়ে থাকা অপ্রয়োজনীয় ই-বর্জ্য জমা দিতে আহ্বান করে।

ঘোষণার এক বছরের মাথায় জমা পড়া ই-বর্জ্য থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে ১৬.৩ কেজি স্বর্ণ। পদক বানাতে যতটুকো স্বর্ণ প্রয়োজন তার অর্ধেকেরও বেশি (৫৪.৫ শতাংশ)-এর ব্যবস্থা করে দিয়েছে। রৌপ্য উদঘাটিত হয়েছে ১৮০০ কেজি যা লক্ষ্যমাত্রার ৪৩.৯ শতাংশ। আর ব্রোঞ্জ সংগ্রহ করা হয়েছে ৪১০০ কেজি। যা ইতোমধ্যেই লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করেছে।

জাতিসংঘ এবং বিভিন্ন সংস্থার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০২১ সাল নাগাদ সারাবিশ্বে ই-বর্জ্যের পরিমাণ দাঁড়াবে ৫২ মিলিয়ন টনে। আর ফেলে দেওয়া এই বর্জ্যের মাত্র ২০ শতাংশ পুনরায় ব্যবহারের উদ্যোগ নেওয়া হয়। অনুন্নত এবং উন্নয়নশীল দেশে ই-বর্জ্য জমা হচ্ছে ল্যান্ডফিল আকারে, বিশাল জায়গাজুড়ে ফেলে দেওয়া ই-বর্জ্যের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মাটি পানি আর পরিবেশ।

খনি খুঁড়ে প্রতি টন আকরিক থেকে যেখানে তিন থেকে চার গ্রাম স্বর্ণ পাওয়া যায় সেখানে এক টন মোবাইল ফোন থেকে পাওয়া যায় ৩৫০ গ্রাম স্বর্ণ। এই বাস্তবতার কথা চিন্তা করেই জাপানকে নামতে হয়েছে ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনায়। তবে ফেলনা জিনিস থেকে অলিম্পিক মেডেল তৈরির ঘটনা এটাই প্রথম নয়। ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিকের ৩০ শতাংশ রৌপ্য এসেছিল ফেলে দেওয়া আয়না থেকে। আয়নার পেছনে রূপার যে প্রলেপ দেওয়া হয় সেখান থেকেই রৌপ্য উদ্ধার করা হয়েছিল।

টাকশালের বর্জ্য থেকে এসেছিল ব্রোঞ্জ মেডেলের ৪০ শতাংশ তামা। ২০১০ সালের ভ্যাংকুভার অলিম্পিকের মেডেলেও ছিল ১.৫ শতাংশ পুনব্যবহৃত ধাতু। তবে ২০২০ সালের জাপানের টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য অলিম্পিক ছাড়িয়ে যাবে সব রেকর্ড। প্রতিযোগীদেরকে দেওয়া মেডেলে যে ধাতু ব্যবহার হবে তার সম্পূর্ণটাই আসবে ই-বর্জ্য থেকে।

অনেক বাঁধা বিপত্তি অতিক্রম করে ২০১৮ সালের জুন নাগাদ ৪.৩২ মিলিয়ন ব্যবহৃত মোবাইল ফোন সংগ্রহ করা হয়েছিল জাপানের অধিবাসীদের কাছ থেকে। অব্যবহৃত ইলেকট্রনিক দ্রব্যাদি দানে উদ্বুদ্ধ করতে দেশব্যাপী চালানো হয় ক্যাম্পেইন, নির্মাণ করা হয় ভিডিওচিত্র। টোকিও অলিম্পিকের পদক নির্মাণের কাজে সহায়তার আহ্বানে জাপানজুড়ে বেশ ভালো সাড়া জাগে। ই-বর্জ্যের ব্যাপারে তৈরি হয়েছে সচেতনতাও।

স্থানীয় মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনগুলোও এই প্রকল্পে অংশ নিয়েছে। তারা সংগ্রহ করেছে ৩৮ হাজার ৫৭৯ টন বর্জ্য। এর মধ্যে আছে ছোটখাটো ইলেকট্রনিক বর্জ্য পণ্য থেকে মোবাইল ফোন পর্যন্ত।

তবে এখন পর্যন্ত যা ই-বর্জ্য সংগৃহীত হয়েছে তা জাপানের বার্ষিক ই-বর্জ্যের মাত্র তিন শতাংশ। তবে ই-বর্জ্য থেকে স্বর্ণ, রৌপ্য এবং ব্রোঞ্জ আহরণের পরে বাকি অধাতব অংশ দিয়ে কী করা হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মূল্যবান ধাতু সংগ্রহের পর অধাতব অংশ যদি আবারো ফেলে দেওয়া হয় তাহলে তা আবারো পরিবেশের ক্ষতি করতে পারে। তাই অধাতব অংশ বিশেষ করে প্লাস্টিককে আবারো ব্যবহার উপযোগী করে তোলাও জরুরী।

টোকিও অলিম্পিকের আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এই বিপুল কর্মযজ্ঞে তাদের সহযোগীদের কাছ থেকে তারা স্বর্ণ, রৌপ্য এবং ব্রোঞ্জের সরবরাহ নিচ্ছেন। অধাতব অংশ সাধারণভাবেই প্রক্রিয়াজাত করা হচ্ছে বলেও জানানো হয়। মোট ছয়টি ধাপে কাজগুলো করা হচ্ছে। আগ্রহী দাতাদের কাছ থেকে মোবাইল সংগ্রহের কাজ করছে জাপানি টেলিকম কোম্পানি 'এনটিটি ডোকোমো'। ছোট বড় গৃহস্থালী ইলেকট্রনিক পণ্য সংগ্রহ করছে জাপানের বিভিন্ন মিউনিসিপ্যাল কর্তৃপক্ষ।
সংগ্রহের পর যাছাই বাছাই করার কাজটি শুরু হয়। দক্ষ কর্মীরা বাছাই করে আলাদা করেন কোন মোবাইলগুলো থেকে ধাতু ব্যবহার করা যাবে পদক তৈরির কাজে। যাছাই বাছাই শেষ হবার পর এদেরকে ভেঙ্গে ফেলার পালা। মোবাইলকে ভেঙ্গে এর ভেতর থেকে স্বর্ণ, রৌপ্য কিংবা অন্য মূল্যবান ধাতুর প্রলেপ বের করে আনা হয়।

প্রতিটি মোবাইল কিংবা ইলেকট্রনি পণ্য থেকে খুব সামান্য পরিমাণ মূল্যবান ধাতব উপাদান পাওয়া যায়। এক ধাতুর সাথে মিশ্রিত থাকে আরেক ধাতু। বিশাল চুল্লিতে ফেলে অপদ্রব্য দূর করে কাজে লাগানোর উপযোগী করে নেওয়া হয় এদেরকে।

অপদ্রব্য দূর করতে বেশ কয়েক ধাপে পরিশোধন করা হয়। সর্বশেষ পরিশোধনের পর পাওয়া যায় পদক তৈরির উপযোগী খাঁটি স্বর্ণ। প্রায় একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে রৌপ্য, তামা এবং টিনও আলাদা করে হয়ে থাকে। এবং এদের নির্দিষ্ট অনুপাতে মিশিয়ে তৈরি করা হয় পদক। টোকিও অলিম্পিকের আয়োজকদের প্রত্যাশা, ই-বর্জ্য থেকে তৈরি এই স্বর্ণ, রৌপ্য আর ব্রোঞ্জের পদক গলায় ঝুলিয়েই অলিম্পিকে বিজয়ীরা সারা পৃথিবীর কাজে বর্জ্য পুনঃব্যবহারের গুরুত্ব সবার কাছে ছড়িয়ে দেবেন।

Source: https://roar.media/bangla/main/world/japan-olympics-medal-from-e-waste/


Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 17