Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy

Author Topic: Branding Bangladesh: time to go for an integrated policy  (Read 15827 times)

Offline saratasneem

  • Faculty
  • Sr. Member
  • *
  • Posts: 269
    • View Profile
Re: ধূমপান: মিনিটেই দেহের ক্ষতি
« Reply #60 on: December 06, 2012, 04:12:43 PM »
No doubt.

Offline tamim_saif

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 357
  • Test
    • View Profile
Synthetic Fuel Could Eliminate U.S. Need for Crude Oil, Researchers Say
« Reply #61 on: December 06, 2012, 06:48:16 PM »
ScienceDaily (Dec. 2012)

The United States could eliminate the need for crude oil by using a combination of coal, natural gas and non-food crops to make synthetic fuel, a team of Princeton researchers has found.

Offline tamim_saif

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 357
  • Test
    • View Profile
First Evidence of Fish Sensing Geomagnetic Fields from a Czech Christmas Market
« Reply #62 on: December 06, 2012, 06:51:41 PM »
ScienceDaily (Dec. 2012) —
Carp stored in large tubs at Czech Christmas markets align themselves in the north-south direction, suggesting they possess a previously unknown capacity to perceive geomagnetic fields, according to a new study published December 5 in the open access journal PLOS ONE, led Hynek Burda from the University of Life Sciences (Prague), Czech Republic and colleagues from other institutions.

Offline tamim_saif

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 357
  • Test
    • View Profile
Breath test could possibly diagnose colorectal cancer
« Reply #63 on: December 06, 2012, 06:53:07 PM »
A new study published in the British Journal of Surgery (BJS) has demonstrated for the first time that a simple breath analysis could be used for colorectal cancer screening.

Offline tanbir

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 117
    • View Profile
Beat the common cold
« Reply #64 on: December 07, 2012, 01:47:49 AM »
The common cold

The common cold is one of the most widespread and prevalent viral infections out there.

The immunity levels of the person play the most vital role in how frequently an individual contracts a cold. The trouble is that this infection is caused by so many viruses that it is not possible for our body’s immune system to develop immunity against each and every type of virus.

While there is no cure for the cold, there are some precautions and home remedies that can be very helpful in symptomatic relief.
Ease that cold – home remedies

Here are some simple home remedies that’ll help ease the symptoms of the common cold:
Lemon and honey - Lemon in warm water with one teaspoon of honey can be taken three times daily. Lemon increases the body’s resistance against the cold and its vitamin C content can be useful in washing out toxic components from the body and decreasing the duration of the disease.

Go for garlic - Garlic has antiseptic and antispasmodic properties. Boil 4 to 5 cloves of garlic in water and ingest the mixture three to four times daily. Garlic oil also helps in opening the respiratory passage. 3 to 4 drops of garlic oil mixed with 4 to 5 drops of onion can be very helpful in flushing all the toxic materials from the body, hence lowering the fever.

Ginger to the rescue - Ginger is an excellent remedy for the common cold. Boil it with water to make a decoction, which can be taken thrice daily, along with half a teaspoon of sugar. Add ginger to your tea for a soothing a delicious beverage.
Other tips to get over your cold

The best precaution you can take to avoid getting a cold is to eat a nutritious and healthy meal that enhances your immunity. It is better to avoid alcohol and cigarettes.

Use a towel or handkerchief while sneezing or coughing to check the spread of infection to others.

Avoid taking antibiotics, as they have no role in the treatment of these viral infections. They may weaken the body’s natural immunity and kill the healthy bacteria of the body, which will create a further favorable ground for the virus to multiply, with more virulence making the condition worse.

Drink lots of water and try to rest as much as possible. It is advised that when the acute symptoms of the disease are present, like soreness of throat, running nose, fever, chills, congestion of nasal passage etc., the food eaten should be light and diluted. After the acute symptoms are gone, go back to your normal well-balanced diet of seeds, nuts, cereals, grains vegetables and fruits. Avoid fish meat, cheese, and starchy foods.

Ref: http://sg.news.yahoo.com/aaah-choo-home-remedies-ease-common-cold-033046659.html
« Last Edit: December 10, 2012, 05:00:57 PM by Badshah Mamun »
Tanbir
Lecturer, Department of Pharmacy,
DIU.

Offline rumman

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1020
  • DIU is the best
    • View Profile
Re: দুআ করার কয়েকটি আদব
« Reply #65 on: December 07, 2012, 09:35:12 AM »
Md. Abdur Rumman Khan
Senior Assistant Registrar

Offline rumman

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1020
  • DIU is the best
    • View Profile
Arsenic & Lung
« Reply #66 on: December 07, 2012, 10:42:45 AM »
মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক মিশ্রিত পানি পানে এত দিন চর্মরোগ, মাথাব্যথা, ভুল বকা, ডায়রিয়াসহ নানা ধরনের অসুখের কথা শোনা যেত। এমনকি নিয়মিত এই বিষযুক্ত পানি দীর্ঘদিন ধরে পান করলে হৃদযন্ত্রের সমস্যা, স্ট্রোক, ক্যান্সারের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার কথাও জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আর্সেনিকের ক্ষতি নিয়ে গবেষণা এগিয়েছে আরো এক ধাপ। এবার অস্ট্রেলিয়ার বিজ্ঞানীরা সুনির্দিষ্টভাবে জানিয়েছেন, গর্ভবতী নারীরা যদি আর্সেনিক মিশ্রিত পানি পান করেন তবে তাঁদের গর্ভের সন্তানও তাতে আক্রান্ত হয়। ওই সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর তীব্র শ্বাসকষ্টে ভোগার আশঙ্কা থাকে। এই নবজাতকের শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণের জন্য দায়ী মায়ের পান করা পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক। ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার (ইউডাব্লিউএ) গবেষকরা এই গবেষণা করেন।
ইউডাব্লিউয়ের পরিবেশগত স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষক ক্যাথরিন রামসি এই গবেষণাকে যুগান্তকারী অভিহিত করে বলেছেন, 'সবাই জানে, আর্সেনিকের ভেতর ক্যান্সার সৃষ্টির উপাদান যথেষ্ট মাত্রায় রয়েছে। তবে শরীরে পানিবাহিত এই খনিজ উপাদানটির মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি যে ফুসফুসের জন্যও ক্ষতিকর, এই গবেষণা সেটাই প্রমাণ করল।' তিনি আরো বলেন, 'এই গবেষণায় আমরা খুঁজে পেয়েছি, শ্বাসযন্ত্রের অস্বাভাবিক আচরণ ও গঠনগত ত্রুটি পরবর্তী জীবনে বড় ধরনের সমস্যা তৈরি করতে পারে। আমরা আরো দেখেছি, আর্সেনিকের মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি ফুসফুসে শ্লেষ্মার (মিউকাস) পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। স্বাভাবিক শ্বাস গ্রহণের ক্ষেত্রে এটি বাধার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।'
২০০৭ সালের এক গবেষণায় জানা গেছে, বিশ্বের ৭০টি দেশের ১৩ কোটি ৭০ লাখ মানুষ নিজেদের অজান্তেই আর্সেনিকদূষিত পানি পান করছে। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া
« Last Edit: December 10, 2012, 05:30:36 PM by Badshah Mamun »
Md. Abdur Rumman Khan
Senior Assistant Registrar

Offline shahida sultana shimu

  • Newbie
  • *
  • Posts: 19
  • Test
    • View Profile
Re: “Daffodil Moot Court Society”
« Reply #67 on: December 07, 2012, 11:29:19 AM »
Dear ma`am,
                    Hurray! it is a great news for the students of department of law.specially i would like to thanks our honorable Department Head Farhana Helal Mehtab ma`am for doing a great job.Really our ma`am is a real ideal person who enrich the department of law.It is our great achievement.


shahida sultana shimul

Online Sultan Mahmud Sujon

  • Administrator
  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 2646
  • Sultan Mahmud Sujon,Admin Officer
    • View Profile
    • Higher Education
Open Youtube Easily 100% working
« Reply #68 on: December 08, 2012, 10:29:24 AM »
Click here to dounload]

এটি একটি জিপ ফাইল, এটাকে আনজিপ করুন।
এবার ফাইল টা আপনার C ড্রাইভের এই ডিরেক্টরি তে পেস্ট করুনঃ :  c\Windows\System32\drivers\etc
দেখবেন ফাইল রিপ্লেস করার জন্য এডমিন পারমিশন চাইবে। পারমিশন দিন এবং ওকে করে বেড়িয়ে আসুন।
এর পরের কাজটা একটু ঝামেলার...
প্রথমে আপনার ব্রাউজার ওপেন করুন।
এড্রেস বারে লিখুন http://www.youtube.com or https://www.youtube.com


কাজ হলে কমেন্ট করুন[/size]
« Last Edit: December 08, 2012, 10:34:46 AM by bbasujon »

Offline Md. Khairul Bashar

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 203
  • Test
    • View Profile
Life style change of Sokhina
« Reply #69 on: December 08, 2012, 11:25:39 AM »
নিতান্ত দরিদ্র একটি পরিবার। টাকার অভাবে ভালো একটি শাড়িও কেনা হয়নি কখনো। হঠাৎ একদিন স্বামী আবদুল মজিদের কাছে একটি গাভি কিনে আনার আবদার করেন সখিনা। একটি গাভি থেকে দুটি। দুটি থেকে চারটি। এভাবে বাড়তে বাড়তে এখন ৮৪টি গরুর মালিক এই দম্পতি। গড়ে তুলেছেন বিশাল দুগ্ধ খামার।

সখিনা-মজিদ দম্পতির বাড়ি বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার কাবিলপুর গ্রামে। তাঁদের অভাবের সংসার এখন সুখ আর প্রাচুর্যে ভরপুর। বলতে গেলে শূন্য হাতে শুরু করে আজ তাঁরা সাফল্যের শিখরে উঠেছেন। পরিশ্রম আর সংগ্রাম করে সখিনা শুধু নিজের সংসারেই স্বচ্ছলতা আনেননি, পাশাপাশি গ্রামের অন্যদেরও গাভি পালনে উৎসাহিত করে স্বাবলম্বী হওয়ার পথ দেখিয়েছেন। কাবিলপুর থেকে খামার-বিপ্লব ছড়িয়ে পড়েছে সোনাতলা উপজেলার আশপাশের গ্রামগুলোয়।সখিনা বেগম সোনাতলার জীবনপুর গ্রামের আবদুল করিম শেখের মেয়ে। ১৯৮২ সালে একই উপজেলার কাবিলপুর গ্রামের আবদুল মজিদের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। স্বল্পশিক্ষিত স্বামীর তখন আয়-রোজগার ছিল না। অভাবের কাছে হার মানেননি সখিনা। কিছু একটা করার সংকল্প নিয়ে বাবার দেওয়া সোনার বালা ৫০০ টাকায় বিক্রি করে এ অর্থ তুলে দেন স্বামীর হাতে। স্বামী শুরু করেন হাটে হাটে ধান কেনার ব্যবসা। কয়েক বছর পর সখিনাকে একটি গাভি কিনে দেন মজিদ। সেই একটি গাভিই তাঁর ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে। সখিনা গড়ে তুলেছেন দুগ্ধ খামার। ওই খামারের নাম ‘সখিনা ডেইরি খামার’। ২০০০ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়।

যেভাবে শুরু: বাইসাইকেলে চড়ে গ্রামের হাটবাজারে গিয়ে ধান ও চালের ব্যবসা করতেন মজিদ। সখিনা একদিন আবদার করলেন, ধান ভাঙার পর তুষ ও চালের কুঁড়া থেকে যায়। একটা গাভি থাকলে এসব খাওয়ানো যেত। মজিদ বলেন, ‘সখিনা বিয়ের পর কোনো কিছুরই আবদার করেনি। এত দিন পর একটা গাভি চেয়েছে। সালটা ১৯৯৮ হবে। পাশের নামাজখালী গ্রামে গিয়ে সুভাষ ঘোষ নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ১৬ হাজার টাকায় একটি বিদেশি গাভি কিনে বাড়িতে নিয়ে আসি। সেই যে শুরু, তারপর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।’দুগ্ধ খামারে একদিন: বগুড়া শহর থেকে ৩৬ কিলোমিটার দূরে কাবিলপুর গ্রাম। সখিনার পাকা বাড়ির পাশেই প্রায় ৪০ শতাংশ জায়গাজুড়ে বিশাল দুগ্ধ খামার।

সখিনা জানান, দুধেল গাভির মধ্যে ২০টি ফ্রিজিয়ান, ২০টি শাহিওয়াল ও পাঁচটি জার্সি জাতের। ফ্রিজিয়ান জাতের গাভি ৩০ লিটার পর্যন্ত দুধ দেয়। দুগ্ধ খামারে কোনো এঁড়ে বাছুর রাখেন না তিনি। দুধ দেওয়া শেষ হলেই তা বিক্রি করে দেন। যে গাভি দিয়ে খামার শুরু করেছিলেন, সেটিও রয়েছে খামারে। সখিনা-মজিদ দম্পতি গাভিটিকে আদর করে ‘লক্ষ্মী’ বলে ডাকেন। খামারের একপাশে বায়োগ্যাস প্লান্ট; অন্যপাশে কয়েক বিঘাজুড়ে লাগানো হয়েছে খামারের গাভির খাবারের জন্য নিপিয়ার ঘাস।

ভাগ্যবদলের উপাখ্যান: সখিনা বলেন, ‘আমাদের এক শতাংশ জমিও ছিল না। প্রথমে খামারের জন্য ৪০ শতাংশ জায়গা কিনেছি। কয়েক লাখ টাকা খরচ করে খামারে তিনটি শেড দিয়েছি। শেডগুলোর মেঝেতে ইট বিছিয়েছি। পানি সরবরাহের জন্য বৈদ্যুতিক মোটর কিনেছি। প্রতিটি শেডে বৈদ্যুতিক পাখা লাগিয়েছি। খামারের আয় দিয়ে পাঁচ বিঘা আবাদি জমি কিনেছি। আরও পাঁচ বিঘা জমি বন্ধক নিয়েছি।’সখিনা আরও জানান, খামারে এখন কোটি টাকার গরু রয়েছে। চালের ব্যবসায় প্রায় পাঁচ লাখ টাকার পুঁজি খাটছে। বড় ছেলে শাহাদত হোসেন বগুড়া আজিজুল হক কলেজে মাস্টার্সে পড়ছেন। ছোট ছেলে আজাদ হোসেন ঢাকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতায় স্নাতক (সম্মান) পর্যায়ে লেখাপড়া করছেন।

আয়-ব্যয়: খামারের আয়-ব্যয়ের হিসাব রাখেন মজিদ। তিনি জানান, বর্তমানে ২৫টি গাভি দুধ দিচ্ছে। এসব গাভি থেকে দিনে গড়ে ৪০০ লিটার দুধ পাওয়া যাচ্ছে। প্রতি লিটার দুধ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে। সেই হিসাবে প্রতিদিন দুধ বিক্রি থেকে আয় হয় ১৬ হাজার টাকা। খাদ্য আর শ্রমিকের মজুরি বাবদ খামারে প্রতিদিন ব্যয় প্রায় চার হাজার টাকা। দুধ দোহানোর পর খামারের শ্রমিকেরা তা উপজেলা সদরের ব্র্যাক ডেইরি ও প্রাণের সংগ্রহকেন্দ্রে পৌঁছে দিচ্ছেন।

এলাকায় খামার-বিপ্লব: সখিনার সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে সোনাতলা উপজেলায় অনেকেই দুগ্ধ খামার করেছেন। কাবিলপুরের জাকির হোসেন, আবদুল হামিদ; রানীরপাড়ার পিন্টু মিয়া, শফিকুল ইসলাম; গড়চৈতন্যপুরের লতিফ খলিফা; সোনাতলা বন্দরের সোনা মিয়া, সিরাজুল ইসলামসহ অনেকেই এখন সফল দুগ্ধখামারি। প্রতিদিনই লোকজন আসেন সখিনা-মজিদ দম্পতির কাছে খামার সম্পর্কে নানা পরামর্শ নিতে। এই দম্পতির পরামর্শ নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে এখন ৬৫টি দুগ্ধ খামার গড়ে উঠেছে।

অন্যরা যা বলেন: উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান জানান, সখিনা-মজিদ দম্পতি ডেইরি খামার গড়ে তোলার মাধ্যমে এলাকার দুধ ও মাংসের চাহিদা পূরণ করছেন। তাঁরা নিজেদের ভাগ্যবদলের পাশাপাশি অন্যদের খামার গড়ার পরামর্শ দিয়ে দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে অবদান রাখছেন।উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়ব জাকির বলেন, ‘সখিনা-মজিদ দম্পতিকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। তাঁদের সংসারে একসময় খুব অভাব-অনটন ছিল। গাভির খামার তাঁদের ভাগ্য বদলে দিয়েছে।’


সূত্রঃ http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-12-07/news/311274
« Last Edit: December 10, 2012, 05:29:00 PM by Badshah Mamun »

Offline Md. Khairul Bashar

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 203
  • Test
    • View Profile
Re: “Daffodil Moot Court Society”
« Reply #70 on: December 08, 2012, 11:53:51 AM »
Its really a great achievement for DIU, specially for the Department of Law. Special thanks to Madam (Head, Dept. of Law) for choosing such historical date for starting DMCS’s activities. Best wishes for “Daffodil Moot Court Society”.

Offline Md. Khairul Bashar

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 203
  • Test
    • View Profile
Invention of Plastic bulb
« Reply #71 on: December 08, 2012, 11:58:30 AM »
প্রযুক্তির এক নতুন জাদু আবিষ্কার হয়েছে। জাদু প্লাস্টিক থেকেও নাকি আলোর জেল্লা বেরুবে। কোন গালগল্প নয়, এমন দাবিই করলেন বিজ্ঞানীরা। যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানী ড. ডেভিড ক্যারোল বর্তমানে প্রচলিত ইলেকট্রিক বাল্বের চেয়ে উন্নত প্রযুক্তির বাল্ব উদ্ভাবনের কথা জানিয়েছেন। প্লাস্টিকের কয়েকটি লেয়ারের সমন্বয়ে তৈরি নতুন বাল্বটি ফ্লুরোসেন্ট বাল্বের চেয়ে দ্বিগুণ কার্যক্ষম বলে দাবি করেছেন উদ্ভাবকরা। প্লাস্টিক বাল্বটির আবিষ্কারক ড. ক্যারোল ক্যালিফোর্নিয়ার ওয়েক ফরেস্ট ইউনিভার্সিটির পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক। তিনি বলেন, বাল্বটি যে কোন আকারে বানানো সম্ভব এবং বর্তমানে জনপ্রিয় কম্প্যাক্ট ফ্লুরোসেন্ট বাল্বের (সিইউএফএ) তুলনায় এটি বেশি উজ্জ্বল ও কম্পনবিহীন। সিইউএফএল বাল্ব মানুষের চোখের উপযোগী নয়। এর কম্পনের কারণে অনেকে মাথাব্যথায় ভোগেন। নতুন আবিষ্কৃত ফিল্ড-ইনডিউস্ড পলিমার ইলেক্ট্রোলিউমিনেসেন্ট (ফিপেল) টেকনোলজিতে তৈরি বাল্বটির হোয়াইট-এমিটিং পলিমারের তিনটি স্তরের ভেতরের ন্যানোম্যাটেরিয়াল দিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হলে তা আলো উৎপাদন করে।


সূত্রঃ http://www.dailyinqilab.com/details_news.php?id=93914&&%20page_id=%206
« Last Edit: December 10, 2012, 05:26:54 PM by Badshah Mamun »

Offline Md. Khairul Bashar

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 203
  • Test
    • View Profile
Best living city is Viena
« Reply #72 on: December 08, 2012, 12:39:05 PM »
বিশ্বের বসবাসযোগ্য শহরের তালিকায় চতুর্থবারের মতো শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনা। এ তালিকার সবচেয়ে নিচের অবস্থানে রয়েছে ইরাকের রাজধানী বাগদাদ। সমপ্রতি এ তালিকা প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা মার্সার। ১৭ লাখ বাসিন্দার জন্য সমন্বিত স্বাস্থ্য সেবাসহ সবচেয়ে বেশি সুযোগ-সুবিধা দিয়ে আসছে প্রাচীন ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির ধারক শহর ভিয়েনা। হ্যাবসবার্গ শাসনামলের ঐশ্বর্যমণ্ডিত বিভিন্ন স্থাপনা শহরটিকে পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত করেছে।

যদিও সামপ্রতিক সময়ে ভিয়েনা শহরে বাসস্থান ব্যয় কিছুটা বেড়ে গেছে, তবে শহরের মধ্যে যাতায়াতের জন্য দৈনিক ব্যয় হয় মাত্র ১ ইউরো। সারা বছরের জন্য পাসের মাধ্যমে এ যাতায়াত ব্যবস্থা পরিচালিত হয়। নিজ শহরের রাস্তাঘাটে নিরাপত্তা ব্যবস্থা, গাড়ি পার্কিংয়ের সুলভ ব্যবস্থা এবং বনায়নের প্রশংসাও করেন ভিয়েনার বাসিন্দা ২৪ বছর বয়সী শিক্ষার্থী আনা স্টারিবাকার।

বিশ্বের শহরগুলোর রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষাব্যবস্থা, অপরাধ প্রবণতা, বিনোদন ও যাতায়াত ব্যবস্থাসহ ৩৯টি সূচকের ভিত্তিতে প্রতিবছর বিশ্বের সবচেয়ে বসবাসযোগ্য শহরের তালিকা প্রস্তুত করে থাকে জরিপ প্রতিষ্ঠান মার্সার। সারা ইউরোপ জুড়ে অর্থনৈতিক মন্দা সত্ত্বেও ২০১২ সালের জরিপে ইউরোপের ১৫টি শহর রয়েছে তালিকার উপরের দিকে। শীর্ষ ১০ শহরের মধ্যে রয়েছে জার্মানি ও সুইজারল্যান্ডের তিনটি করে শহর। সুইজারল্যান্ডের জুরিখ দ্বিতীয়, জেনেভা অষ্টম এবং বার্ন দশম স্থানে রয়েছে। জার্মানির মিউনিখ চতুর্থ, ডাসেলডর্ফ ষষ্ঠ ও ফ্রাঙ্কফুট অষ্টম অবস্থানে রয়েছে। ইউরোপের শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে নিচের অবস্থানে রয়েছে গ্রিসের রাজধানী এথেন্স।


সূত্রঃ http://www.ittefaq.com.bd/index.php?ref=MjBfMTJfMDhfMTJfMV83XzFfMjA2OQ==
« Last Edit: December 10, 2012, 05:07:49 PM by Badshah Mamun »

Offline saratasneem

  • Faculty
  • Sr. Member
  • *
  • Posts: 269
    • View Profile

Offline sazirul

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 136
  • Md Sazirul Islam | EEE 4th Batch
    • View Profile
    • Sazirul Islam
Re: Open Youtube Easily 100% working
« Reply #74 on: December 08, 2012, 08:22:01 PM »
Thanks, it's working.  :)