অ্যান্টিভাইরাস অ্যাভাস্ট যেভাবে সর্বনাশ করছে

Author Topic: অ্যান্টিভাইরাস অ্যাভাস্ট যেভাবে সর্বনাশ করছে  (Read 288 times)

Offline Forman

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 59
  • Tech Lover
    • View Profile
জনপ্রিয় অ্যান্টিভাইরাস অ্যাভাস্টের বিরুদ্ধে গোপনে তথ্য সংগ্রহ করে তা মাইক্রোসফট, গুগলের মতো তৃতীয় পক্ষের কাছে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি একটি অনুসন্ধানী তদন্তে অ্যাভাস্টের এই অনৈতিক কার্যক্রমের বিষয়টি উঠে আসার পর বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছে অ্যাভাস্ট কর্তৃপক্ষ। এরপর থেকে ব্রাউজারের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহের চর্চা আর করবে না বলে প্রতিশ্রুতিও দিচ্ছে।

বিশ্বজুড়ে উইন্ডোজ, ম্যাক ও মোবাইল ফোন মিলিয়ে ৪৩ কোটি ৫০ লাখ ডিভাইসে অ্যাভাস্ট ইনস্টল করা রয়েছে। ব্রাউজার প্লাগইন ব্যবহার করে ব্যবহারকারীর বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহের পর তা বিক্রি করে দেওয়ার কথা প্রকাশ করে প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট মাদারবোর্ড ও পিসি ম্যাগ।



আইএএনএসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হ্যাকিং থেকে বাঁচতে বা ডিভাইসের তথ্য সুরক্ষার জন্য বিনা মূল্যের অ্যাভাস্ট অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করা হয়। এ সুযোগটাই নেয় অ্যাভাস্ট। অনেক স্পর্শকাতর তথ্য সংগ্রহ করে তা বিশেষ চুক্তির মাধ্যম বিক্রি করে তারা।

অ্যাভাস্টের বৈশ্বিক প্রধান নির্বাহী অন্দ্রেজ ভাইসেক আইএএনএসকে বলেছেন, ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে ব্রাউজার স্টোরের মান অনুযায়ী তারা কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। শুধু নিরাপত্তা ইঞ্জিনের প্রয়োজন ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্যে ব্রাউজার এক্সটেনশন থেকে তথ্য সংগ্রহ করা বন্ধ হয়েছে।

তদন্তের সময় অ্যাভাস্টের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান জাম্পশটের কাছেও স্পর্শকাতর তথ্য পাওয়া যায়। এখন তাদের কাছেও তথ্য দেওয়া বন্ধ করেছে অ্যাভাস্ট।

যেসব ডিভাইসে অ্যাভাস্ট ইনস্টল করা থাকে, সেখান থেকে ব্রাউজার হিস্টোরি সংগ্রহ করে অ্যাভাস্ট এরপর সেসব তথ্য কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন পণ্য উপযোগী করে জাম্পশট বিক্রির জন্য উন্মুক্ত করে। এ তথ্য ইয়েলপ, গুগল, মাইক্রোসফট, ম্যাকিনসে, স্যাফোরার মতো বড় বড় কোম্পানি কিনে নেয়।

ভাইসেক দাবি করেন, জাম্পশট কোনো ব্যক্তিগত তথ্য যেমন ই–মেইল, নাম বা কন্টাক্টের বিস্তারিত জানতে পারে না। তা ছাড়া ব্যবহারকারী এখন চাইলে তথ্য শেয়ার করার বিষয়টি বন্ধ করে দিতে পারেন।

তদন্তে দেখা গেছে, গত বছর তথ্য পেতে একটি প্রতিষ্ঠান জাম্পশটকে ২০ লাখ ডলার পরিশোধ করেছে। এ ছাড়া যাঁরা পরিচয় গোপন করে পর্নো সাইটে যান, তাঁদেরও ট্র্যাক করে রাখার পর সেসব তথ্যও বেশি দামে বিক্রি করা হয়।

ওই তদন্তে দাবি করা হয়েছে, ব্রাউজার থেকে তথ্য সংগ্রহ বন্ধের কথা বলা হলেও এখন অ্যান্টিভাইরাসের মাধ্যমেই সরাসরি তথ্য সংগ্রহ করছে অ্যাভাস্ট। তবে অ্যাভাস্টের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।