বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে

Author Topic: বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে  (Read 1158 times)

Offline maruppharm

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1227
  • Test
    • View Profile
বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। আগামী তিন বছরে বিশ্বের বড় অর্থনীতির দেশগুলোর মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি আরও বাড়বে। এই তালিকায় রয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশসূমহ, যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, ভারতসহ বেশ কিছু দেশ। তবে চীনের প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমে স্থিতিশীল থাকবে।
এ ছাড়া আগামী তিন বছরে জ্বালানি তেলের দামও কিছুটা কমবে। আর নিত্যপণ্যের দামও কমার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। তবে বিশ্ববাণিজ্য বাড়বে সমানতালে। নিজস্ব ওয়েবসাইটে গতকাল বুধবার বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টাস প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে।
বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, মন্দার পর ২০১৪ সাল হবে বিশ্ব অর্থনীতির ‘টার্নিং পয়েন্ট’। তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রণোদনা গুচ্ছ প্রত্যাহার করা হলে এর প্রভাবে সারা বিশ্বের প্রবৃদ্ধি ঝুঁকির মধ্যে পড়তে পারে।
প্রতিবেদনে বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি বিশ্ব গড় প্রবৃদ্ধি, মূল্যস্ফীতি, জ্বালানি তেল ও নিত্যপণ্যের দামসহ বিভিন্ন সূচকের আগামী তিন বছরের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ২০১২ ও ২০১৩ সালের সূচক প্রকাশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।
প্রতিবেদনে উন্নয়নশীল দেশগুলোর অর্থনৈতিক সক্ষমতা বাড়াতে কাঠামোগত সংস্কারের তাগিদ দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, চলতি ২০১৪ সালে সারা বিশ্বের গড় প্রবৃদ্ধি হবে ৩ দশমিক ২ শতাংশ। তবে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে এই হার হবে যথাক্রমে ৩ দশমিক ৪ এবং ৩ দশমিক ৫ শতাংশ।
বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ যুক্তরাষ্ট্র। চলতি বছরে এই দেশটির প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৮ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। আগামী বছরে দশমিক ১ শতাংশের বেশি বেড়ে প্রবৃদ্ধি হবে ২ দশমিক ৯ শতাংশ। পরের বছরে এই হার বেড়ে হবে ৩ শতাংশ। সর্বশেষ ২০১৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রবৃদ্ধি ছিল ১ দশমিক ৯ শতাংশ।
আরেক বড় অর্থনীতি ব্রাজিলে এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ২ দশমিক ৪ শতাংশ। ২০১৬ সালে গিয়ে তা বেড়ে দাঁড়াবে ৩ দশমিক ৭ শতাংশে।
এদিকে পিছিয়ে নেই ক্রমবর্ধমান বড় অর্থনীতির দেশ ভারতও। বিশ্বব্যাংক বলছে, ২০১৪ সালে এই দেশটির প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ২ শতাংশ। আর আগামী বছর তা বেড়ে হবে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। আর ২০১৬ সালে তা আরও বেড়ে ৭ দশমিক ১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে।
তবে চীনের অর্থনীতি আগামী তিন বছরে কিছুটা স্থিতিশীল থাকবে। চলতি অর্থবছরে চীনের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ২ শতাংশ হলেও পরের দুই বছরে তা ৭ দশমিক ১ শতাংশে স্থির থাকবে।
বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আগামী তিন বছরে উচ্চ আয়ের দেশগুলোর গড় জিডিপি প্রবৃদ্ধিও বাড়বে, যা মন্দা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করবে। যুক্তরাষ্ট্র, জাপানসহ উচ্চ আয়ের দেশগুলো চলতি বছর ২ দশমিক ২ শতাংশ গড় প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। অর চীন, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, ব্রাজিলসহ উন্নয়নশীল দেশগুলোর চলতি বছরে গড় প্রবৃদ্ধি হবে ৫ দশমিক ৩ শতাংশ। পরের দুই বছরে তা আরও বাড়বে।
২০১৪ সালে ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর গড় প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৭ শতাংশ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে। এই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে এই গড় প্রবৃদ্ধি আরও বেড়ে যথাক্রমে ৬ দশমিক ৩ শতাংশ ও ৬ দশমিক ৭ শতাংশ হবে। ২০১৪ সালে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি কমে ৫ দশমিক ৭ হতে পারে বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।
দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো সম্পর্কে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই অঞ্চলের দেশগুলোর মূল ঝুঁকিগুলো হলো আর্থিক ও নীতি সংস্কার থেকে সরে যাওয়া, বাংলাদেশ, ভারত ও আফগানিস্তানে নির্বাচনকেন্দ্রিক অনিশ্চয়তা, ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতির চাপ।
বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৪ সালে ৪ দশমিক ৬ শতাংশ হারে বিশ্ববাণিজ্য বাড়বে। আগামী দুই বছর এই হার ৫ দশমিক ১ শতাংশ হবে। এর মানে হলো আগামী তিন বছর ক্রমান্বয়ে বাণিজ্য বাড়বে সারা বিশ্বে।
বিশ্বব্যাংক আরও বলছে, চলতি বছরে জ্বালানি তেলের দাম ২ ডলারের মতো কমে ব্যারেলপ্রতি গড় দাম ১০৩ দশমিক ৫ ডলার হবে, যা ২০১৬ সাল নাগাদ আরও কমে ৯৮ দশমিক ৬ ডলার হতে পারে। অন্যান্য পণ্যের দামও কমবে।
Md Al Faruk
Assistant Professor, Pharmacy