বাংলাদেশে সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্ট ইঞ্জিনিয়ারিং প্রশিক্ষণ

Author Topic: বাংলাদেশে সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্ট ইঞ্জিনিয়ারিং প্রশিক্ষণ  (Read 1053 times)

Offline suvro.dhaka

  • Newbie
  • *
  • Posts: 41
    • View Profile
The Daily Sangbad
বাংলাদেশে সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্ট ইঞ্জিনিয়ারিং প্রশিক্ষণ
তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিবেদক
আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট খাতে সারা পৃথিবীতে সুনাম অর্জন করেছে। প্রতি বছর সফটওয়্যার রপ্তানি করে বিলিয়ন ডলার আয় করছে। বর্তমানে বাংলাদেশেও বিভিন্ন সফ্টওয়্যার প্রতিষ্ঠান সফ্টওয়্যার রপ্তানি শুরু করেছে এবং বছরে মিলিয়ন ডলার আয়ও হচ্ছে ওই সফটওয়্যার রপ্তানি থেকে। আন্তর্জাতিক বাজারে সফটওয়্যার রপ্তানি করার জন্য আন্তর্জাতিক মানের সফটওয়্যার ডেভেলাপ করতে হয়। দেশের সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাই নিজেদের মান উন্নয়নের জন্যে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে। সফটওয়্যার শিল্পের বিকাশ ও রপ্তানির ক্ষেত্রে ভারতের এই অভাবনীয় সাফল্যের মূলে আছে মানসম্পন্ন বা কোয়ালিটি সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের বিশেষ দক্ষতা। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সফটওয়্যার ডেভেলপ করার জন্য তাই স্থানীয় সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিশেষ মনযোগী হতে হবে।
একটি সফটওয়্যার ডেভেলপ করার সময়ে তার মান যাচাইয়ের জন্য প্রতিটি স্তরে সফটওয়্যার টেস্টিং করতে হয়। সফটওয়্যার ডিবাগিং বা সংশোধনের কাজ ছাড়াও সফটওয়্যার টেস্টিং এ আরও অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ কাজ আছে। সফটওয়্যার টেস্টিং এর মূল উদ্দেশ্য হলো_ সফটওয়্যারটির মানের উন্নয়ন করা ও ব্যবহারের উপযোগিতা বাড়ানো।

ভারতসহ পৃথিবীর সব উন্নত দেশেই সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টের ক্ষেত্রে অভিজ্ঞ সফটওয়্যার টেস্টারদের মাধ্যমে টেস্টিংয়ের পর সফটওয়্যারটির মান সম্পর্কে নিশ্চিত হলে তবেই তা বাজারজাত বা রপ্তানি করা হয়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সাফল্য অর্জনের জন্য বাংলাদেশের সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোকেও সফটওয়্যার টেস্টিং এ গুরুত্ব বাড়াতে হবে।

উন্নত দেশগুলোতে সফটওয়্যারর মানের নিশ্চয়তার জন্য সার্টিফায়েড টেস্টারদের সফটওয়্যার টেস্টিংয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়। বর্তমানে ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশন বোর্ডের (আইএসটিকিউবি) সফটওয়্যার টেস্টার সার্টিফিকেট প্রাপ্তদের সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্টার ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে গণ্য করা হয়। বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ড সফটওয়্যার টেস্টিং এ 'আইএসটিকিউবি সার্টিফায়েড ফাউন্ডেশন লেভেল (সিটিএফএল)' ও 'আইএসটিকিউবি সার্টিফায়েড টেস্টার অ্যাডভান্সড লেভেল' এবং 'সার্টিফায়েড টেস্টার এক্সপার্ট লেভেল' কোর্স প্রবর্তন করে উত্তীর্ণদের সার্টিফায়েড টেস্টারের সার্টিফিকেট প্রদান করে যা আন্তর্জাতিক বাজারে অনেক দিন ধরেই স্বীকৃতি পেয়ে আসছে। বর্তমানে সারা পৃথিবীতে এ ধরনের লক্ষাধিক সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্টিং প্রফেশনাল কাজ করছেন। ভারতের সার্টিফায়েড সফটওয়্যার প্রফেশনালের সংখ্যা ৮ হাজার এর অধিক। কিন্তু দুঃখজনক হচ্ছে বাংলাদেশে সফটওয়্যার অঙ্গনে সার্টিফায়েড সফটওয়্যার প্রফেশনাল টেস্টার সংখ্যা মাত্র ১৭ জন।

সম্প্রতি আইএসটিকিউবি সফটওয়্যার টেস্টিং সার্টিফিকেশনের ক্ষেত্রে গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ডের মর্যাদা অর্জন করেছে। ইন্ডিয়ান টেস্টিং বোর্ডের প্রধান ভিপুল কোচার জানিয়েছেন, সফটওয়্যার টেস্টার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করার ক্ষেত্রে ভারতে এখন আইএসটিকিউবির সফটওয়্যার টেস্টিং সার্টিফিকেশনেই সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে এবং নিয়োগের ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ভারতের যেসব সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক বাজারে সফটওয়্যার কার্যক্রম পরিচালনা করছে সেসব দেশের সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোর সুপারিশ থাকে যে তাদের জন্য ভারতে যে সফটওয়্যারগুলো তৈরি হচ্ছে সেগুলোর মান যেন সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্টিং প্রফেশনালদের মাধ্যমে যাচায়ের পর পাঠানো হয়। এই কারণে ভারতে সার্টিফায়েড টেস্টিং প্রফেশনালদের চাহিদা অত্যন্ত বেশি।

বাংলাদেশের যেসব সফ্টওয়্যার প্রতিষ্ঠান আন্তর্জাতিক বাজারে সফটওয়্যার রপ্তানি করছেন তারা যদি তাদের প্রতিষ্ঠানে সার্টিফায়েড সফটওয়্যার টেস্টিং প্রফেশনাল বা ইঞ্জিনিয়ার অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন তবে বিদেশে তাদের ডেভেলাপ করা সফটওয়্যারের গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেড়ে যাবে। এর ফলে সফটওয়্যার রপ্তানির পরিমাণও বাড়বে।

২০০৬ সালের জানুয়ারি মাসে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশে আসে একটি বিজনেস ডেলিগেশন। ওই ডেলিগেশনে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ড. বার্নড হিনডেল। ড. হিনডেল ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ডের এক জনপ্রতিষ্ঠাতা। ওই সময় বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতির প্রতিনিধি দলে ছিলেন দেশের বিশিষ্ট কম্পিউটার ব্যক্তিত্ব-বংলাদেশ কমপিউটার সমিতির সাবেক সভাপতি ও ডেফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান। দুই দেশের প্রতিনিধি দলের সভায় ড. হিনডেল জানান, বাংলাদেশের ডেভেলপ করা সফটওয়্যারের মানের উন্নয়ন ও বিশ্ব স্বীকৃতি অর্জনের জন্য এই দেশে সফটওয়্যার টেস্টিং কার্যক্রম শুরু করতে হবে।

হিন্ডেল আরো বলেন এই লক্ষ্যে সফল হতে হলে প্রথমে বাংলাদেশকে ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশন বোর্ডের সদস্য হতে হবে। সবুর খান বিষয়টার গুরুত্ব অনুধাবন করে ডেফোডিল গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ডিআইআইটির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ নূরুজ্জামানকে দায়িত্ব দেন এ ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়ার জন্য। মোহাম্মদ নূরুজ্জামানের নিরলস প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ড গঠিত হয় এবং শুরু হয় ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ডের অন্তর্ভুক্তির প্রচেষ্টা। ওই বছরই (২০০৬) যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে অনুষ্ঠিতত ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশন বোর্ডের সাধারণ সভায় বংলাদেশ সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ডের প্রতিনিধি মোহাম্মদ নূরুজ্জামান অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য জোর আবেদন জানানোর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশকে ওই বোর্ডের সদস্য পদ দেয়া হয়। বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশনের ২৮তম সদস্যের মর্যাদা লাভ করে। বর্তমানে বিশ্বের ৫২টি দেশ এই বোর্ডের সদস্য। এর পর থেকে বাংলাদেশে এর কার্যক্রম শুরু হয়।

ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার কোয়ালিটি ইনস্টিটিউট (আইএসকিউআই) হল ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশন বোর্ডের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানটি সফটওয়্যারের মান বা কোয়ালিটির সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে যেমন সফটওয়্যারের মানের উন্নয়ন এবং এর জন্য কুশলীদের উন্নত মানের ট্রেনিং এবং দক্ষতার স্বীকৃতি স্বরূপ সার্টিফিকেট প্রদান, সেমিনার ও কনফারেন্সের মাধ্যমে সফটওয়্যার শিল্প এবং একাডেমিয়ার মধ্যে সংযোগ তৈরি করা ইত্যাদি। আইএসকিউআই প্রতি বছর সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ওপর একটি কনফারেন্সের আয়োজন করে। ২০০৬ থেকে প্রতি বছরের কনফারেন্সে বাংলাদেশ সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ডের মোহাম্মদ নূরুজ্জামান যোগদান করেন এবং কয়েকটি সেশনের চেয়ারম্যানও ছিলেন। আইএসকিউআই এর সঙ্গে ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির একটি শিক্ষা কার্যক্রম বিষয়ক চুক্তি সম্পাদিত হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন সফটওয়্যার টেস্ট ইঞ্জিনিয়ার তৈরি করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সফটওয়্যার টেস্টিং বোর্ড ও ডেফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ১৬ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণের অয়োজন করেছে। কোর্স শেষে ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার কোয়ালিটি ইনস্টিটিউট (িি.িরংয়র.ড়ৎম), জার্মানি কর্তৃক আয়োজিত পরীক্ষার মাধ্যমে ইন্টারন্যাশনাল সফটওয়্যার টেস্টিং কোয়ালিফিকেশন বোর্ড (িি.িরংঃয়ন.ড়ৎম) কর্তৃক সাটিফিকেট অর্জন করা যাবে। দেশের সফটওয়্যার শিল্পকে ব্যাপকভাবে আন্তর্জাতিক মানে উন্নত করার উদ্দেশ্যেই এই কোর্সের আয়োজন করা হয়েছে। আশা করা হচেছ দেশের বিভিন্ন সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়াররা বিশেষ করে যারা সফটওয়্যার টেস্টিংয়ের সঙ্গে জড়িত তারাই এই কোর্সে অংশগ্রহণ করে নিজেদের দক্ষতা বাড়াতে সক্ষম হবেন। সেই সঙ্গে বাংলাদেশে সফটওয়্যার টেস্টিং ইঞ্জিনিয়ারের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে বিদেশে বাংলাদেশী সফটওয়্যারের গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেড়ে যাবে। কোর্সটিতে ২০/২৫ জন অংশগ্রহণ করতে পারবেন। বিস্তারিত :suvro_diu@yahoo.com, Mobile: ০১১৯৯১৩১৬৬০, ০১৮১১৪৫৮৮৩২। website: http://blog.akterulalam.com/

- See more at: http://www.thedailysangbad.com
/index.php?ref=MjBfMDRfMThfMTRfM18yOF8xXzE2MDkxNg%3D%3D#sthash.TFUIkt1J.dpuf
« Last Edit: April 23, 2014, 09:33:39 AM by suvro.dhaka »

Offline Elahe

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 52
    • View Profile
Md. Fazla Elahe
Lecturer, Department of Software Engineering,
Daffodil International University.
Cell: +8801635362828
Email: elahe.se@daffodilvarsity.edu.bd