World Bank explains discrepancy in GDP projection

Author Topic: World Bank explains discrepancy in GDP projection  (Read 276 times)

JEWEL KUMAR ROY

  • Guest
World Bank explains discrepancy in GDP projection
« on: June 15, 2015, 08:50:15 PM »
The World Bank on Monday cited lack of efficiency, low capacity of data collection system as well as scarcity of necessary data and information on the part of the Bangladesh Bureau of Statistics (BBS) in carrying out activities of national accounting.

The World Bank Dhaka office’s Lead Economist Zahid Hussain came up with the remarks at a press conference on the proposed FY16 Budget. World Bank Acting Country Head Salman Zaidi was also present at the press conference, a news agency report said.

When asked whether the government is maintaining any secrecy over calculation of GDP growth, the World Bank official said “It is not a matter of secrecy, rather a case of lack of necessary data and information, and the accounting method employed.”

Referring to the World Bank's earlier projection of 5.6 per cent GDP growth in the outgoing fiscal year, Dr Hussain repeating his previous comments said he would not be surprised if the GDP growth for FY15 comes to 6.5 per cent as per the estimation of the BBS, since it follows the indirect method of national accounting as a “data poor country”.

He said that in such method, the losses to the economy due to abnormality or other reasons like political turmoil are not reflected.

The World Bank official also said that even India adopted the direct method of national accounting only last year in some specific sectors.

Asked whether the 6.51 per cent growth in the outgoing fiscal year is unrealistic, Dr Hussain said, "In terms of loss, especially you could say that the loss is not captured realistically."

About the government move in the proposed budget to set up a new bank for the public servants, namely Shammridhi Shopan Bank, the World Bank official said that amongst the experts and researchers, there is a consensus that there is no need for any new bank in Bangladesh either in the public or private sector.

He also said that there is a problem in the state-owned commercial banks regarding governance.

Asked how the World Bank calculated the losses due to political turmoil during January-March, Dr Hussain said that they have calculated the per day productivity where the losses of different sectors vary, with the service sector especially suffering.

About the World Bank's Washington office's GDP growth projection of 6.3 per cent for Bangladesh in FY16, he said that the government set a target of 7 per cent growth in FY16 which is a challenging one. "But whatever reform initiatives are highlighted in the proposed budget, don't seem to me sufficient enough."

JEWEL KUMAR ROY

  • Guest
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #1 on: June 15, 2015, 09:14:21 PM »
৭% প্রবৃদ্ধি অসম্ভব না হলেও চ্যালেঞ্জিং: বিশ্ব ব্যাংক

সোমবার বিশ্ব ব্যাংকের ঢাকা অফিসের প্রধান অর্থনীতিবিদ জাহিদ হোসেন ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তার সংস্থার মতামত তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, “বিনিয়োগ পরিস্থিতির যদি উন্নতি করা যায়, অর্থাৎ এখনকার জিডিপির ২৯ শতাংশ বিনিয়োগ যদি আরও ২ থেকে ২.৫ শতাংশ বাড়ানো যায়, এবং বর্তমানের স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতি যদি অব্যাহত থাকে, তাহলে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন অসম্ভব হবে না।”

পরিসংখ্যান ব্যুরোর চলতি অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বাজার মূল্যে দেশের জিডিপির আকার দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ১৩ হাজার ৫৯৯ কোটি টাকা। গত অর্থবছরে এর পরিমাণ ১৩ লাখ ৪৩ হাজার ৬৭৪ কোটি টাকা ছিল।

গত অর্থবছরের বাজেটে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও শেষ পর্যন্ত তা ৬ দশমিক ৫১ শতাংশ হতে পারে বলে পরিসংখ্যান ব্যুরোর ধারণা।

গত ৪ জুন জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের জন্য প্রায় তিন লাখ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাবে সাত শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রার কথা জানিয়ে মুহিত বলেন, “রাজস্ব ও মুদ্রানীতির সুসমন্বয় এ লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করবে।”

অবশ্য গত শুক্রবার ওয়াশিংটন থেকে প্রকাশিত বিশ্ব ব্যাংকের ‘গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টস’ এ বলা হয়, নতুন অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৩ শতাংশ ছাড়াবে না।

জাহিদ হোসেন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের যে ৬ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি হচ্ছে, তা পৃথিবীর ২০টি দেশেরও নেই। সুতরাং ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধির যে ফাঁদ বলা হয়, তা নেগেটিভ অর্থে না দেখে পজেটিভ অর্থে মূল্যায়ন করা উচিৎ।”

তিনি বলেন, এবারের বাজেটে বিনিয়োগ বাড়াতে উল্লেখযোগ্য কিছু পদক্ষেপের কথা বলা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে কয়েকটি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কথা বলা হয়েছে, যার কয়েকটির কাজ এ বছরের মধ্যে শেষ হবে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বাড়াতেও নান পদক্ষেপের কথা বলা হয়েছে।

“সে কারণেই আমার মনে হয়, চ্যালেঞ্জ হলেও সাত শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন কঠিন হবে না।”

JEWEL KUMAR ROY

  • Guest
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #2 on: June 15, 2015, 09:15:29 PM »
জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬.৩% ছাড়াবে না: বিশ্ব ব্যাংক

বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটন থেকে প্রকাশিত ঋণদাতা সংস্থাটির ‘গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টস’ প্রতিবেদনে এ পূর্বাভাস দেওয়া হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির গতি শ্লথ করে দেবে।

“রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে বাংলাদেশে পণ্য সরবরাহ মারাত্মকভাবে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে দেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্পে। এর ফলে চলতি হিসাবে ঘাটতি হওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।”

বিশ্ব ব্যাংক গোষ্ঠীর প্রধান এই প্রতিবেদনটি বছরে দুবার- জানুয়ারি ও জুনে প্রকাশিত হয়।

গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত বছরের প্রথম প্রতিবেদনে চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ২ শতাংশ হবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হলেও হালনাগাদ প্রতিবেদনে তা কমিয়ে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ ধরা হয়েছে।

তবে এরই মধ্যে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হালনাগাদ হিসাবে চলতি অর্থবছরে ৬ দশমিক ৫১ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিরতা বিবেচনায় নিয়ে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস ৬ দশমিক ৪ শতাংশ সংশোধন করে কমিয়ে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ ধরা হয়েছে।

“অস্থিরতা প্রশমিত হলে রপ্তানি ও বিনিয়োগ চাঙ্গা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রবৃদ্ধিও বাড়বে। বিশেষ করে সৌদি আরবে আবার অভিবাসন শুরুর পর প্রবাসী আয়ে তেজি প্রবাহে সামষ্টিক ভোগ পুষ্ট হবে।”

“অর্থনীতি বর্তমান সক্ষমতা নিয়ে এগুতে থাকলে পূর্বাভাসের মেয়াদকালের সম্ভাবনার কাছাকাছি প্রবৃদ্ধি থাকবে বলে আশা করা যায়।”

রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা বাড়ায় বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধি কমলেও প্রবাসী আয়ে তেজি প্রবাহ থাকায় অভ্যন্তরীণ চাহিদায় কোনো প্রভাব পড়বে না বলে মনে করছে ঋণদাতা সংস্থাটি।

ভাল কৃষি ফলনের প্রভাবে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ও প্রবৃদ্ধি কিছুটা চাঙ্গা থাকবে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংক বলছে, বাংলাদেশে বেসরকারি বিনিয়োগ পরিস্থিতির উন্নতি ঘটলেও তা হবে খুব ধীর গতিতে। কারণ, ব্যাংকিং খাতে ব্যাপক পরিমাণ অলস ঋণ থাকায় ঋণ প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হবে।

এক্ষেত্রে ব্যাংকিং খাতে ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশেও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোই সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে বলে প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, মার্চ শেষে ব্যাংকিং খাতে মোট খেলাপি ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৪ হাজার ৬৫৭ কোটি ৬৯ লাখ টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ১০ দশমিক ৪৭ শতাংশ।

এই খেলাপি ঋণের সিংহভাহ মন্দ বা কু ঋণ, অর্থাৎ যে ঋণ আদায়ের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। মার্চ শেষে ব্যাংক খাতে এরকম ঋণের পরিমাণ ৪২ হাজার ১৫৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

২০১৪ সালের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ ছিল ৫০ হাজার ১৫৬ কোটি টাকা, যা ওই সময়ের বিতরণ করা ঋণের ৯ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

বিশ্ব ব্যাংকের হালনাগাদ এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৫ সালের প্রথম প্রান্তিকে জ্বালানি তেলের দাম কমে যাওয়ায় তা বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি কমাতে সহায়তা করবে এবং রাজস্ব ঘাটতি হ্রাস করবে।

বাংলাদেশে মূল্যস্ফীতি কমে লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে আসবে বা কাছাকাছি পৌঁছাবে, যার ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষে ঋণের সুদহার নির্ধারণ সহজ হবে বলেও মনে করছে বিশ্ব ব্যাংক।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে বিনিয়োগ প্রবৃদ্ধির শ্লথ গতি, আন্তর্জাতিক আর্থিক বাজারে অস্থিতিশীলতা, মধ্যপ্রাচ্যে নিম্ন প্রবৃদ্ধিসহ অনেকগুলো বিষয়কে এ অঞ্চলের প্রবৃদ্ধির ক্ষেত্রে ঝুঁকি হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে প্রতিবেদনে।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রতিবেদনে আগের তিন বছরের ধারবাহিকতায় ২০১৫ সালকেও বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির জন্য ‘হতাশাজনক বছর’ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, এ বছর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হবে ২ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৬ সালে তা ৩ দশমিক ৩ শতাংশে দাঁড়াতে পারে।

চলতি বছর উন্নয়নশীল বিশ্বে প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৪ দশমিক ৪ শতাংশ, যা আগামী বছর বেড়ে ৫ দশমিক ২ শতাংশ হতে পারে।

এ বছর উন্নত বিশ্বের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে মাত্র ২ শতাংশ। আগামী বছর ধরা হয়েছে ২ দশমিক ৪ শতাংশ।

২০১৫ সালের জন্য দক্ষিণ এশিয়ার প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ১ শতাংশ এবং পরের অর্থবছরের জন্য ২০১৬-১৭ সালে তা বেড়ে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছর উন্নয়নশীল দেশগুলো কঠিন কিছু চ্যালেঞ্জের মুখে। ঋণের জন্য উচ্চ ব্যয় এবং জ্বালানি তেল ও অন্যান্য পণ্যের নিম্নমূল্য পরিস্থিতিই মূল চ্যালেঞ্জ।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং বলেন, মন্দার পর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির চালিকাশক্তি হলো উন্নয়নশীল দেশগুলো। তবে তারা এখন অধিকতর কঠিন অর্থনৈতিক পরিবেশের মধ্যে আছে। নিম্ন এবং মধ্যম আয়ের দেশগুলো যাতে পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে পারে সেজন্য বিশ্ব ব্যাংক সাধ্যমতো সহায়তা করবে।

Offline Nusrat Nargis

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 361
    • View Profile
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #3 on: June 16, 2015, 11:20:41 AM »
thanks for sharing.
Nusrat Nargis

Assistant Professor
Department of Business Administration
Daffodil International University

JEWEL KUMAR ROY

  • Guest
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #4 on: June 16, 2015, 10:33:13 PM »
 :)

Offline Shah Alam Kabir Pramanik

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 542
  • Test
    • View Profile
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #5 on: June 17, 2015, 11:29:37 PM »
Thanks for sharing

JEWEL KUMAR ROY

  • Guest
Re: World Bank explains discrepancy in GDP projection
« Reply #6 on: June 18, 2015, 12:25:17 PM »
 :)