বাড়ল ক্রিকেটারদের বেতন, ম্যাচ ফি

Author Topic: বাড়ল ক্রিকেটারদের বেতন, ম্যাচ ফি  (Read 464 times)

Offline Anuz

  • Faculty
  • Hero Member
  • *
  • Posts: 1987
  • জীবনে আনন্দের সময় বড় কম, তাই সুযোগ পেলেই আনন্দ কর
    • View Profile
ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির প্রস্তাব অনুযায়ীই ক্রিকেটারদের বেতন ও ম্যাচ ফি বাড়াল বিসিবি। পরিচালনা পরিষদের সভায় কাল সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদিত হয়েছে তা। চুক্তিভুক্ত খেলোয়াড়দের সর্বোচ্চ বেতন আড়াই লাখ থেকে বেড়ে হয়েছে চার লাখ টাকা। সর্বনিম্ন বেতন ৭৫ হাজার টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১ লাখ টাকা।
খেলোয়াড়দের বেতন প্রায় প্রতিবছরই কিছু কিছু করে বাড়িয়ে আসছে বিসিবি। তবে এবার ক্রিকেটারদের দাবি ছিল বেতনের অঙ্কে একটা বড় পরিবর্তন আনার, যাতে সেটা অন্যান্য দেশের ক্রিকেটারদের বেতনের কাছাকাছি অন্তত যায়। তাঁদের অনুরোধ বিবেচনা করে বিভিন্ন শ্রেণির চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের বেতন পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। সভা শেষে বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান জানালেন নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোন শ্রেণিতে কত বেতন হবে।
‘এ প্লাস’ শ্রেণির খেলোয়াড়দের বেতন আড়াই লাখ থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৪ লাখ টাকা। ‘এ’ শ্রেণির ২ লাখ থেকে বাড়িয়ে ৩ লাখ, ‘বি’ শ্রেণির দেড় লাখ থেকে বাড়িয়ে ২ লাখ, ‘সি’ শ্রেণির ১ লাখ থেকে বাড়িয়ে দেড় লাখ ও ‘ডি’ শ্রেণির ক্রিকেটারদের বেতন ৭৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ১ লাখ টাকা।
বাড়ানো হয়েছে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের ম্যাচ ফিও। টেস্টের ম্যাচ ফি আগে ছিল ২ লাখ টাকা, এখন হয়েছে সাড়ে ৩ লাখ। ওয়ানডের ম্যাচ ফি ১ লাখ থেকে বেড়ে হয়েছে ২ লাখ টাকা এবং টি-টোয়েন্টির ম্যাচ ফি ৭৫ হাজার টাকা থেকে বেড়ে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। ২০১৩ সালের পর এবারই প্রথম বাড়ল ম্যাচ ফি।
ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ থেকে ক্রিকেটারদের উইনিং বোনাস বাড়ানোরও প্রস্তাব ছিল। বোর্ড সভায় এ নিয়ে আলোচনা হলেও কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেননি সভাপতি।
এ বছরের চুক্তির জন্য নির্বাচিত খেলোয়াড়দের নামের তালিকা আরও আগেই বিসিবিতে জমা দিয়েছেন নির্বাচকেরা। সে তালিকায় নতুন মুখ তাসকিন আহমেদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, কামরুল ইসলাম ও মোসাদ্দেক হোসেন। গত বছর চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারদের মধ্যে নাম নেই নাসির হোসেন, আরাফাত সানি ও আল আমিন হোসেনের। অবশ্য কাল পর্যন্তও আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা হয়নি নতুন চুক্তিতে আসা ১৬ ক্রিকেটারের তালিকা।
বেতনের ‘গ্রেড’ বা শ্রেণি ঠিক করার প্রক্রিয়ায় কিছু পরিবর্তন আসাতেই এই দেরি। এর আগে একজন খেলোয়াড়ের ম্যাচসংখ্যা দিয়েই ঠিক হতো তিনি কোন শ্রেণিতে চুক্তিবদ্ধ হবেন। এখন থেকে সমান গুরুত্ব পাবে খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সও। খেলোয়াড়দের শ্রেণিবিন্যাস তাই একটু এদিক-সেদিক করতে হচ্ছে নির্বাচকদের। সে কারণেই নাম ঘোষণায় এই দেরি।
Anuz Kumar Chakrabarty
Assistant Professor
Department of General Educational Development
Faculty of Science and Information Technology
Daffodil International University

Offline sisyphus

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 424
  • RAM
    • View Profile
যৌক্তিক। সমর্থন জানালাম
Mr. Rafi Al Mahmud
Sr. Lecturer
Department of Development Studies
Daffodil International University