ইহরাম অবস্থায় যে সব কাজ করা নিষেধ

Author Topic: ইহরাম অবস্থায় যে সব কাজ করা নিষেধ  (Read 285 times)

Offline Alamgir240

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 84
  • Test
    • View Profile
ইহরাম অবস্থায় যে সব কাজ করা নিষেধ
হজের প্রথম রুকন ইহরাম। ইহরাম ছাড়া হজ কল্পনাই করা যায় না। ইহরামের মাধ্যমেই মানুষ হজ ও ওমরার কাজ শুরু করে। নামাজের তাকবিরে তাহরিমার মতো ইহরামের দ্বারাই স্বাভাবিক অবস্থার বৈধ কাজসহ অবৈধ সব কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ হয়ে যায়।

ইহরাম বাধার  পর  হজ ও  ওমরাকারীর জন্য কিছু নিষিদ্ধ ও বর্জনীয় কাজ রয়েছে। ইহরামকারীদের জন্য নিষিদ্ধ ও বর্জনীয় কাজগুলো হজ ও ওমরা পালনকারীদের জন্য তুলে ধরা হলো-
ইহরামকারীর জন্য যা নিষিদ্ধ বা বর্জনীয়
>> হজ বা ওমরায় গমণকারী স্বামী-স্ত্রীর পরস্পর যৌন সম্ভোগ ও এ সংক্রান্ত আলাপ-আলোচনা করা নিষেধ।
>> পুরুষের জন্য সেলাইযুক্ত কাপড় দুটি কাপড় এবং স্ত্রীলোকদের জন্য শালীন ও রুচিশীল স্বাচ্ছন্দ্য পোশাক পরিধান করা।
>> ইহরাম অবস্থায় মাথা ও মুখমণ্ডল আবৃত করা যাবে না। তবে স্ত্রীলোকগণ মাথা ঢাকতে পারেন তবে মুখ অনাবৃতই থাকবে।
>> ইহরামের পর সুগন্ধি ব্যবহার করা। কাপড় থেকে ইহরামের আগে ব্যবহৃত সুগন্ধির ঘ্রাণে কোনো সমস্যা নেই।
>> ইহরাম অবস্থায় চুল বা পশম কাটা বা উপড়ানো যাবে না।
>> নখ কাটা যাবে না; তবে ভাঙ্গা নখ ভেঙ্গে ফেলায় ক্ষতি নেই।
>> কোনো স্থলজ পশু শিকার করা। আল্লাহ বলেন, ‘হে ঈমানদারগণ! ইহরামরত অবস্থায় শিকার করো না। (সূরা মায়িদা : আয়াত ৯৫) এমনকি শিকারকে হাঁকানো বা অন্যকে শিকারের কাজে সহযোগিতা করা বা যবেহ করাও নিষেধ।
>> নিজের শরীর বা মাথা থেকে উকুন বা উকুন জাতীয় প্রাণী বধ করা যাবে না। তবে সাপ, মশা-মাছি, ডাশ, গিরগিটি, ইঁদুর, পাগলা কুকুর ইত্যাদি মারার বৈধতা রয়েছে।

মনে রাখতে হবে
ইহরাম হলো হজ ও ওমরার জন্য প্রথম শর্ত। যা ভঙ্গ হয়ে গেলে হজ ও ওমরা আদায় হবে না। হজ ও ওমরা পালনেচ্ছুদেরকে যথাযথভাবে হজ ও ওমরা আদায়ে ইহরামের নিষিদ্ধ ও বর্জনীয় বিষয়ের প্রতি যত্নবান হওয়া জরুরি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব হজ ও ওমরা পালনকারীদেরকে ইহরামের যাবতীয় বিষয়গুলো মেনে চলার তাওফিক দান করুন। আমিন।
collectd