‘পথশিশুদের শিক্ষার আগে থাকা-খাওয়ার নিশ্চয়তা দরকার'

Author Topic: ‘পথশিশুদের শিক্ষার আগে থাকা-খাওয়ার নিশ্চয়তা দরকার'  (Read 215 times)

Offline Farhana Haque

  • Jr. Member
  • **
  • Posts: 56
  • You will never have this day again! Make it count!
    • View Profile

শিশুরা যত ধরনের ঝুঁকির মধ্যে থাকতে পারে, তার সবই বিদ্যমান পথশিশুদের ক্ষেত্রে৷ বিশেষ করে তাদের অধিকারের জায়গা থেকে, বঞ্চনার জায়গা থেকে, সব ধরনের ঝুঁকিতে থাকা শিশুরাই পথশিশু৷ এটাই আমরা মনে করি৷ যেমন ধরেন, একটা শিশুর সবার আগে বাসস্থানের অধিকার রয়েছে, নিরাপত্তার অধিকার রয়েছে, খাদ্যের অধিকার রয়েছে, শিক্ষার অধিকার রয়েছে৷ এসব কিছুই পথশিশুদের জন্য প্রযোজ্য৷ এর কোনো অধিকারই তারা ঠিকমত পাচ্ছে না৷ তার ওপর শারীরিক এবং যৌন নির্যাতনের ঝুঁকি থাকছে রাস্তা-ঘাটে৷ তাদের ওপর অর্থনৈতিক নিপীড়ন থাকছে এবং এর চেয়েও বেশি পরিমাণে যেটা, সেটা হচ্ছে মাদক এবং নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে শিশুদের জাড়ানো হচ্ছে৷ ফলে সার্বিকভাবেই ভয়াবহ থেকেও ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে পথশিশুরা রয়েছে৷
২০২১ সালের মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম এবং ২০৩০ সালের মধ্যে সব ধরনের শিশুশ্রম বন্ধের পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে৷ এই লক্ষ্য পূরণের পথে সরকার কতদূর এগিয়েছে?
আসলে ২০৩০ না, ২০২৫ সালের মধ্যে সব ধরনের শিশুশ্রম বন্ধ করার লক্ষ্য রয়েছে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রায়৷ সেই লক্ষ্যমাত্রায় সরকার অনেকখানি কাঠামোগতভাবে এগিয়েছে৷ কাঠামোগত বলতে আমরা যেটা বুঝি বা বলছি যে, এটা করার জন্য সরকারের যে ধরনের আইন-কানুন, পলিসি দরকার, যেমন ধরেন আমাদের একটা জাতীয় শিশুশ্রম নিরসন নীতিমালা রয়েছে৷ সেটা ২০১০ সালে হয়েছে৷ সেটির আলোকে ২০২৫ সাল পর্যন্ত একটি কর্মপরিকল্পনা রয়েছে৷ আমরা যদি বলি, ন্যাশনাল প্ল্যান অফ অ্যাকশন রয়েছে৷ জাতীয় পরিকল্পনা ২০২১ সাল পর্যন্ত এবং সম্প্রতি সরকারি অর্থায়নে একটি অর্থনীতি প্রকল্প নেওয়া হয়েছে৷ শিশুদের ঝুঁকিপূর্ণ শ্রম থেকে  নিয়ে আসার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে৷ আসলে কাঠামোগতভাবে যেভাবে এগোচ্ছে, সেটুকু অনেক আশা জাগায়৷ কিন্তু শিশুশ্রম নিরসনে একটা জায়গায় মনে হয় আমরা কম গুরুত্ব দিচ্ছি৷ সেটি হচ্ছে, আমরা যেটা বলে থাকি সর্বশেষ জরিপে ১২ লাখ আশি হাজার শিশু ঝুঁকিপূর্ণ কাজের সাথে জড়িত৷ আমরা কেবল তাদের ওখানে নজর দিচ্ছি যে, এই বারো লাখ আশি হাজার শিশুকে সরিয়ে নিরাপদে নিয়ে যেতে পারি কিনা৷ কিন্তু আমাদের এটা মাথায় রাখতে হবে, নতুন করে যেন কোনো শিশু সেই জায়গায় না আসে৷ সেই ধরনের প্রতিরোধমূলক কাজ, অর্থাৎ নতুন করে শিশুদেরকে আমরা কাজে না এনে স্কুলে দিতে পারি৷ সেই কাজটা যদি বাড়ানো যায়, তাহলে ২০২৫ সালের মধ্যে শিশুশ্রমমুক্ত বাংলাদেশ গড়া সম্ভব৷

পথশিশুদের উপর নির্যাতনের খবর প্রায়ই শোনা যায়৷ ধর্ষণের মতো অপরাধ হচ্ছে এই শিশুদের উপর৷ এই অবস্থা থেকে শিশুদের রক্ষায় আমাদের করণীয় কি?

এক্ষেত্রে আমাদের করণীয় হচ্ছে যে, আমরা তো চাই না প্রথমত শিশুরা পথে আসুক, পথে থাকুক৷ এ-রকম কোনো বিষয় থাকলেও বাস্তবতা হচ্ছে এইযে, বিপুল সংখ্যক শিশু পথে রয়েছে৷ সরকার পথশিশু উন্নয়ন কার্যক্রম নামে একটি কার্যক্রম পরিচালনা করছে৷ সেখানে শিশুদের থাকা-খাওয়া এবং নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে৷ আমি মনে করি, সরকারি এবং বেসরকারি উদ্যোগে সারাদেশের যেখানে যত পথশিশু রয়েছে, তাদের জন্য নিরাপদ আবাসন করা দরকার৷ প্রথমেই থাকার ব্যবস্থা এবং তাদের বয়সোপযোগী শিক্ষা এবং তারা যেন একটা বয়সে যখন বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী কাজ করার সুযোগ আছে, সেখানে সেই বয়স হলে তাদের ভোকেশনাল ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে একটা জব, যা কোনরকম ঝুঁকিপূর্ণ নয়, এমন একটি কাজের সঙ্গে যুক্ত করা৷ সরাসরি আমি যদি এক কথায় বলতে চাই, করণীয় রয়েছে শিক্ষা, বিনোদনসহ অন্যান্য যে বিষয়গুলো রয়েছে, সেটি নিশ্চিত করা এবং সকলের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা৷

শিশুদের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক করেছে সরকার৷ কিন্তু সব পথশিশু স্কুলে যাচ্ছে না৷ তাদের শিক্ষার মধ্যে আনার পথে প্রতিবন্ধকতা কী?

বাধ্যতামূলক শিক্ষা, মানে  হচ্ছে আপনাকে যদি তিন ঘণ্টার জন্য বা চার ঘণ্টার জন্য স্কুলে আসতে বলা হয়, আপনি সেখানে আসতে বাধ্য৷ কিন্তু এই শিশুটা স্কুলে আসতে গেলে তাকে তো পরিচ্ছন্ন পোশাক পরে আসতে হবে৷ পেট ভরে খেয়ে আসতে হবে৷ কিন্তু ভেবে দেখলে বুঝতে পারি, একটি শিশুর যেখানে থাকার জায়গা নেই, ভালো একটা কাপড় নেই, খাবারের কোনো নিশ্চয়তা নেই৷ তার জন্য পড়তে আসা বাধ্যতামূলক করা কতটা বাস্তবসম্মত? তার জন্য সেখানে শিক্ষার অবস্থান অনেক নীচেই৷ তার যদি বাকি চাহিদাগুলো পূরণ করা যায় এবং তার যদি একটি থাকার জায়গা থাকে এবং খাওয়ার ব্যবস্থা থাকে এবং একটি পরিচ্ছন্ন পোশাক থাকে, তখন আমরা শিক্ষার কথাটা গুরুত্বের সাথে তাকে বলতে পারি৷ আমরা মনে করি বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা আইনের কথা বলে পথশিশুদের অন্তর্ভূক্ত করা যাবে না, যদি না তাদের অন্যান্য চাহিদাগুলো পূরণ করা যায়৷ 

সূত্রঃ ডয়চে ভেলে
Farhana Haque
Coordination Officer
Daffodil Institute of Social Sciences-DISS
Daffodil International University
Phone: (EXT: 234)