উদ্যোক্তা হতে গেলে বেশি ফান্ডিংয়ের দরকার নেই

Author Topic: উদ্যোক্তা হতে গেলে বেশি ফান্ডিংয়ের দরকার নেই  (Read 71 times)

Offline Sultan Mahmud Sujon

  • Administrator
  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 2633
  • Sultan Mahmud Sujon,Admin Officer
    • View Profile
    • Higher Education


আজকের স্বপ্নবাজ তরুণ যারা নিজের প্যাশনকে ফলো করে চারপাশে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে চায়, তাদের জন্য নতুন প্ল্যাটফর্ম ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেস। শুরু হতে যাচ্ছে ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের প্রথম সিজনের দ্বিতীয় চ্যাপ্টার, যেখানে তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য থাকবে পরামর্শ ও বাস্তব অভিজ্ঞতার উদাহরণ। এই সিজনে উদ্যমী তরুণ যারা নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করে হতে চায় সফল উদ্যোক্তা, তাদের পরামর্শ দেবেন রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান ‘পাঠাও’–এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের এই চ্যাপ্টারের উদ্বোধনী আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রথম আলোর যুব কার্যক্রম ও ইভেন্টসের প্রধান মুনির হাসানের সঙ্গে কথোপকথনে তিনি এ কথা বলেন।   

ক্লেমন সব সময় সতেজতা ও নতুনত্বকে প্রচার করে। বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে পাঠাও রাইড শেয়ারিংয়ের ভাবনাটাও সতেজ বা নতুন ছিল। কীভাবে এই ভাবনা এসেছিল ইলিয়াসের মাথায়? ইলিয়াস বলেন, নতুন আইডিয়া নিয়ে ব্যবসায় শুরু করতে হবে বা উদ্যোক্তা হতে হবে—এমনটা ভেবে কাজ করা যায় না। উদ্যোক্তা হতে হলে আগে নিজেদের জীবনের কিছু বড় সমস্যা খুঁজে বের করতে হয় এবং সেই সমস্যার সমাধানটাই আসলে নতুন উদ্যোগের আইডিয়া হয়ে যায়। মাথায় অনেক নতুন আইডিয়া থাকলেই সফল উদ্যোক্তা হওয়া যায় না। সমস্যার সমাধান দিতে পারলেই উদ্যোগ সফল হয়।

ইলিয়াস আরও বলেন, ‘প্রথমে সমস্যা নিয়ে চিন্তা করেছিলাম যেমন রাস্তায় অনেক ট্র্যাফিক, যাতায়াতের সমস্যা এটার সমাধান কীভাবে করা যায়। তখন রাইড শেয়ারিংয়ের ভাবনা মাথায় আসে। শুরুতেই আমাদের মোবাইল অ্যাপ ছিল না। একটা ভিজিটিং কার্ডে ফোন নম্বরে কল করে রাইড শেয়ার করা হতো। সীমিত রিসোর্স নিয়েই কাজ শুরু করতে হয়েছিল।’

ইলিয়াসের কাছে জানতে চাওয়া হয়, পাঠাওয়ের শুরুর দিকের অবস্থা কেমন ছিল? এমন কোনো বিষয় কি আছে, যেটা এখনো মানুষের অজানা? ইলিয়াস বলেন, ‘পাঠাও শুরুর প্রথম এক-দেড় বছর খুব কষ্টের ছিল। তখনো পাঠাওকে কেউ চিনত না। মানুষ রাইড শেয়ারিং ধারণার সঙ্গে পরিচিত ছিল না। মোটরসাইকেলে একজনের পেছনে বসে এক জায়গায় যাবে—এ মানসিকতা ছিল না। তারপর লোকজন মোবাইলে অ্যাপ ইনস্টল করতে চাইত না। হয়তো তারা সার্ভিসটাকে পছন্দ করছে, কিন্তু প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মেলাতে পারছে না। এ রকম অনেক বাধার মধ্য দিয়ে আমাদের আসতে হয়েছে।’

সমস্যার সমাধান করতে একটা আইডিয়া নিয়ে মাঠে নেমে পড়লেই কি সফল উদ্যোক্তা হওয়া যাবে? ইলিয়াস তাঁর অভিজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পাঠাও আসলে তাঁর ৫ নম্বর ভেঞ্চার। শুরুর দিকের আইডিয়াগুলো সফল হয়নি। বারবার পরিকল্পনাকে বাজারের চাহিদা অনুসারে পরিবর্তন ও পরিমার্জন করেই ৫ নম্বরে এসে পাঠাও সফল হয়।

অনেকেই ভাবেন অনেক ফান্ডিং বা অর্থ না থাকলে স্টার্টআপ শুরু করা যায় না। আসলেই কি তাই? হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, ‘উদ্যোক্তা হতে গেলে আসলে অনেক বেশি ফান্ডিং বা রিসোর্সের দরকার নেই। শুধু সঠিক পরিকল্পনা, সঠিক সমস্যার সঠিক সমাধান, সঠিক কর্মী ও দল নিয়ে কাজ করলেই সফল হওয়া যায়। পাঠাও শুরু হয়েছিল মাত্র চারজন কর্মী নিয়ে। পাঠাওয়ের প্রথম ১০ জন কাস্টমার ছিল আসলে আমাদের বন্ধু বা পরিচিত লোকজনের মধ্য থেকেই।’

আজকের তরুণ-তরুণী যারা নতুন উদ্যোক্তা হতে চায়, তাদের জন্য পরামর্শ হিসেবে হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, প্রথমে সমস্যা খুঁজে তার একটা সঠিক সমাধান বের করতে হবে। এরপর ভাবতে হবে সমাধানটা কোনো পথে মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়, সেটার জন্য কি মোবাইল অ্যাপ লাগবে, নাকি কল সেন্টারের মাধ্যমে করা যাবে, সেসব ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আর অবশ্যই ধৈর্য ধরে লেগে থাকতে হবে, অবস্থা বুঝে পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনতে হবে। শুরুটা করতে হবে নিজের বন্ধু বা পরিচিতজনদের সঙ্গেই। প্রথম কাস্টমারও হবে বন্ধুদের মধ্য থেকেই। এভাবেই ছোট পরিসরে শুরু করে ধীরে ধীরে সফল হওয়া যাবে।

এভাবেই আড্ডা এগিয়ে চলে। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের এই সিজনে হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস পরামর্শ দেবেন এবং অভিজ্ঞতা জানাবেন আজকের তরুণদের, যারা উদ্যোক্তা হতে চায়। কীভাবে একটা স্টার্টআপের আইডিয়া করা যায়, কীভাবে একটা দল তৈরি করা যায়, কীভাবে ফান্ডিং করতে হয়, কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয়—এসব বিষয় নিয়ে আগামী পর্বগুলোয় কথা বলবেন ইলিয়াস। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের আগামী পর্বগুলো দেখতে এবং আরও সতেজ আপডেট জানতে চোখ রাখুন ক্লেমন এবং প্রথম আলোর ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।