নভেম্বরে বাংলাদেশে হবে ডব্লিউসিআইটির ২৫তম আসর

Author Topic: নভেম্বরে বাংলাদেশে হবে ডব্লিউসিআইটির ২৫তম আসর  (Read 293 times)

Offline Md. Sazzadur Ahamed

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 586
  • Test
    • View Profile
তথ্য ও যোগযোগপ্রযুক্তি বিশ্ব সম্মেলন ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস অন ইনফরমেশন টেকনোলজির (ডব্লিউসিআইটি) ২৫তম আসর। আগামী ১১ থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত চার দিনব্যাপী এ সম্মেলনের এবারের আয়োজক বাংলাদেশ।

 আজ মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ (আইসিটি) সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ কথা জানায়। ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সার্ভিসেস অ্যালায়েন্সের (উইটসা) উদ্যোগে বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি বিভাগ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির যৌথ উদ্যোগে এ সম্মেলন হবে।

বিজ্ঞাপন
এবারের আয়োজনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে, ‘আইসিটি দ্য গ্রেট ইকুয়ালাইজার’। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ১১ নভেম্বর থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডব্লিউসিআইটি অনুষ্ঠিত হবে। আয়োজনটি অনলাইনেও হবে। এ আয়োজনের পাশাপাশি এশিয়া ও ওশেনিয়া অঞ্চলের আন্তর্জাতিক সম্মেলন অ্যাসোসিও ডিজিটাল সামিট ২০২১ অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আধুনিক ইন্টারনেটের জনক হিসেবে খ্যাত ভিন্টন গ্রে সার্ফ, রবার্ট এলিয়ট কান, রাদিয়া পার্লম্যান এবং ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের উদ্ভাবক টিমোথি জন বারনার্স লি ভার্চুয়্যালি যুক্ত হবেন। এ ছাড়া ইন্টেলের চেয়ারম্যান ওমর এস ইশরাক, নাসা থেকে ডাউগ কমস্টক, নিউইয়র্ক সিটি মেয়র অফিসের কমিশনার ভিক্টর ক্যালিস, ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়নের বিলেল জামৌসি, আইএমডি স্মার্ট সিটি অভজারভেটরির সভাপতি ব্রুনোল্যানভিনসহ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি-বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ অংশ নেবেন।

সংবাদ সম্মেলনে ভার্চুয়্যালি যুক্ত হয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ বলেন, ২০২১ সাল বাংলাদেশের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য বছর। এ বছর ডব্লিউসিআইটিসহ অনেক বড় বড় আয়োজন করছে বাংলাদেশ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, পুরো বিশ্বের বৈষম্য, নারী–পুরুষের বৈষম্য দূর করতে সবচেয়ে শক্তিশালী হাতিয়ার হচ্ছে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি। এই খাতের মাধম্যে হার্ডওয়্যার শিল্পের বিকাশ ঘটছে, মানুষের হাতে ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে। শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত হয় আইসিটি ব্যবহারের মাধ্যমে।

ভার্চুয়্যালি যুক্ত হয়ে উইটসা মহাসচিব জেমস এইচ পোজেন্ট বলেন, এ ধরনের আয়োজন শুধু বৈশ্বিকভাবে তথ্যপ্রযুক্তির বিস্তার ঘটানোই না স্বাগতিক দেশকেও তুলে ধরা। বাংলাদেশ তথ্যপ্রযুক্তিতে অনেক এগিয়েছে এবং প্রযুক্তিগতভাবে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দেবে বলে তিনি আশা করেন।

তথ্য প্রযুক্তি খাতের সদস্যদের একটি নেতৃস্থানীয় কনসোর্টিয়াম উইটসা ১৯৭৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিশ্বের ৮০টির বেশি দেশ তাদের সদস্য। উইটসার সদস্যরা বিশ্বের তথ্য প্রযুক্তি বাজারের ৯০ শতাংশেরও বেশি প্রতিনিধিত্ব করে। ডব্লিউসিআইটি তাদের সিগনেচার ইভেন্ট।

ডব্লিউসিআইটিতে অংশ নিতে হলে https://www.wcit2021.org.bd/ সাইটে গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি শাহিদ উল মুনীরের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন আইসিটি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব জিয়াউল আলম, বিসিসির নির্বাহী পরিচালক মো. আবদুল মান্নান।
Md. Sazzadur Ahamed
Senior Lecturer
​B.Sc. Program Coordinator (CSE)
Dept. of Computer Science and Engineering
Daffodil International University
102, Shukrabad, Dhanmondi, Dhaka-1207