ইবলিস নিজেকে আদম (আঃ) এর সঙ্গে তুলনা করার চেষ্টা করেছিল

Author Topic: ইবলিস নিজেকে আদম (আঃ) এর সঙ্গে তুলনা করার চেষ্টা করেছিল  (Read 161 times)

Offline ashraful.diss

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 104
  • 'শীঘ্রই রব তোমাকে এত দিবেন যে তুমি খুশি হয়ে যাবে'
    • View Profile
ইবলিস নিজেকে আদম (আঃ) এর সঙ্গে তুলনা করার চেষ্টা করেছিল


আল্লাহ তা’আলা যখন ইবলিসকে আদেশ অস্বীকার করার যথাযথ কারণ উল্লেখ করতে বললেন তখন ইবলিস নিজেকে আদম (আঃ) এর সঙ্গে তুলনা করে তার উপর শ্রেষ্ঠত্ব দাবী করে বলেছিল “আমি আদমের চাইতে শ্রেষ্ঠ। আপনি আমাকে আগুন দিয়ে সৃষ্টি করেছেন এবং তাকে সৃষ্টি করেছেন মাটি দিয়ে।” ইবলিসের বিশ্বাস ছিল যে, সৃষ্টি জগতে সে আদম (আঃ) এর চাইতেও উন্নত এবং অধিক সম্মানের অধিকারী একটি সৃষ্টি। সেইজন্য, আল্লাহ আদেশ করা সত্ত্বেও ইবলীস সেজদায় যেতে অস্বীকার করেছিল। আসলে, তার মনের মধ্যে খারাপ প্রকৃতির হিংসা জন্মেছিল। ইবলিসের আদম (আঃ) এর প্রতি ঈর্ষা কুরআনের বিভিন্ন আয়াতে উঠে এসেছে:

قَالَ مَا مَنَعَکَ اَلَّا تَسۡجُدَ اِذۡ اَمَرۡتُکَ ؕ قَالَ اَنَا خَیۡرٌ مِّنۡہُ ۚ خَلَقۡتَنِیۡ مِنۡ نَّارٍ وَّخَلَقۡتَہٗ مِنۡ طِیۡنٍ

আল্লাহ বললেনঃ আমি যখন নির্দেশ দিয়েছি, তখন তোকে কিসে সেজদা করতে বারণ করল? সে বললঃ আমি তার চাইতে শ্রেষ্ট। আপনি আমাকে আগুন দ্বারা সৃষ্টি করেছেন এবং তাকে সৃষ্টি করেছেন মাটির দ্বারা।{সূরা আল-আরাফ: আয়াত ১২}

قَالَ اَنَا خَیۡرٌ مِّنۡہُ ۚ خَلَقۡتَنِیۡ مِنۡ نَّارٍ وَّخَلَقۡتَہٗ مِنۡ طِیۡنٍ

সে বললঃ আমি তার চেয়ে উত্তম আপনি আমাকে আগুনের দ্বারা সৃষ্টি করেছেন, আর তাকে সৃষ্টি করেছেন মাটির দ্বারা। { সূরা সাদ: আয়াত ৭৬}

قَالَ یٰۤـاِبۡلِیۡسُ مَا لَکَ اَلَّا تَکُوۡنَ مَعَ السّٰجِدِیۡنَ - قَالَ لَمۡ اَکُنۡ لِّاَسۡجُدَ لِبَشَرٍ خَلَقۡتَہٗ مِنۡ صَلۡصَالٍ مِّنۡ حَمَاٍ مَّسۡنُوۡنٍ

আল্লাহ বললেনঃ হে ইবলিস, তোমার কি হলো যে তুমি সেজদাকারীদের অন্তর্ভূক্ত হতে স্বীকৃত হলে না? বললঃ আমি এমন নই যে, একজন মানবকে সেজদা করব, যাকে আপনি পচা কর্দম থেকে তৈরী ঠনঠনে বিশুষ্ক মাটি দ্বারা সৃষ্টি করেছেন। {সূরা আল-হিজর: আয়াত ৩২-৩৩}

وَاِذۡ قُلۡنَا لِلۡمَلٰٓئِکَۃِ اسۡجُدُوۡا لِاٰدَمَ فَسَجَدُوۡۤا اِلَّاۤ اِبۡلِیۡسَ ؕ  قَالَ ءَاَسۡجُدُ لِمَنۡ خَلَقۡتَ طِیۡنًا ۚ

স্মরণ কর, যখন আমি ফেরেশতাদেরকে বললামঃ আদমকে সেজদা কর, তখন ইবলীস ব্যতীত সবাই সেজদায় পড়ে গেল। কিন্তু সে বললঃ আমি কি এমন ব্যক্তিকে সেজদা করব, যাকে আপনি মাটির দ্বারা সৃষ্টি করেছেন? {সূরা আল-বনী ইসরাইল: আয়াত ৬১}

আল্লাহ তায়ালা ইবলিসকে তার স্থান ত্যাগ করার নির্দেশ দিলেন

অস্বীকারের কারণে, ইবলিসকে বহিষ্কার করে দেয়া হয়েছিল:


قَالَ فَاہۡبِطۡ مِنۡہَا فَمَا یَکُوۡنُ لَکَ اَنۡ تَتَکَبَّرَ فِیۡہَا فَاخۡرُجۡ اِنَّکَ مِنَ الصّٰغِرِیۡنَ

বললেন তুই এখান থেকে যা। এখানে অহংকার করার কোন অধিকার তোর নাই। অতএব তুই বের হয়ে যা। তুই হীনতমদের অন্তর্ভুক্ত। {সূরা আল-আরাফ: আয়াত ১৩}

قَالَ فَاخۡرُجۡ مِنۡہَا فَاِنَّکَ رَجِیۡمٌ

আল্লাহ বললেনঃ বের হয়ে যা, এখান থেকে। কারণ, তুই অভিশপ্ত। {সূরা আল-হিজর: আয়াত ৩৪; সূরা সাদ: আয়াত ৭৭}

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তার এই গর্হিতমূলক কথা শ্রবণ করে বললেন, হে শয়তান! আজ থেকে তোর স্থান জান্নাতে নেই তুই বহিস্কার হয়ে যা তুই আজ থেকে বিতাড়িত শয়তান। আর কেয়ামত পর্যন্ত তোর উপর আমার লানত বর্ষিত হতে থাকবে।

আল্লাহ পাকের এই অসন্তুষ্টজনক কথা শুনে তার উচিত ছিল ক্ষমা প্রার্থনা করা। তাতো দূরের কথা তাফসীরে জালালাইন শরীফের হাশিয়ার মধ্যে আছে, পরবর্তীতে আদম (আঃ)-এর কবর দেখাই দিয়ে আল্লাহ বলেছিলেন, তোর জন্য তো জাহান্নাম অবধারিত হয়েছে, এখনো তুই আদমের কবরে একটা সিজদা করলে আমি তোকে মাফ করে দিব। কিন্তু এত বড় সুযোগ পেয়েও ইবলিস আল্লাহর কথা মানল না বরং জবাব দিল যেই আদম (আঃ)-কে জীবিত অবস্থায় সিজদা করলাম না তাঁর কবরে এখন সিজদা করা অসম্ভব। এমনকি কিয়ামতের পর আদম (আঃ) জান্নাতে চলে যাবেন আর ইবলিস শয়তান জাহান্নামে গিয়ে কঠিন আজাব ভোগ করতে থাকবে। এভাবে এক লক্ষ বৎসর অতিবাহিত হওয়ার পর মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আদম (আঃ)-কে জান্নাত থেকে বাহির করে আনবেন আর ইবলিস শয়তানকেও জাহান্নাম থেকে বাহিরে এনে বলবেন, এখনো যদি আদম (আঃ)-কে সিজদা করিস আমি তোকে ক্ষমা করে দেব।

কিন্তু শয়তানের কপালে এমন ভাবে আগুন লেগেছে যে, এত বড় আজাবে গ্রেফতার থেকেও মুক্তি পাওয়ার জন্য আদমকে (আঃ) সিজদা করবে না। তখন আল্লাহ পাক ঘোষণা করে দিবেন ইবলিস! তুই পুনরায় জাহান্নামে চলে যা। সে জাহান্নামে জ্বলতে রাজি কিন্তু আদমকে সিজদা করতে রাজি হবে না। এর নামই হল ইবলিসের শয়তানী। {জালালাইন শরীফ-৮ পৃষ্ঠা}

Mufti. Mohammad Ashraful Islam
Ethics Education Teacher, DISS
Khatib, Central Mosque, Daffodil Smart City
Ashuli , Savar, Dhaka