সাক্ষাতের আদব

Author Topic: সাক্ষাতের আদব  (Read 277 times)

Offline ashraful.diss

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 148
  • 'শীঘ্রই রব তোমাকে এত দিবেন যে তুমি খুশি হয়ে যাবে'
    • View Profile
সাক্ষাতের আদব
« on: September 07, 2022, 05:00:42 PM »

সাক্ষাতের আদব

একবার এক সাহাবি প্রশ্ন করলেন, ‘আল্লাহর রাসূল, কারও ভাই বা বন্ধুর সাথে দেখা হলে, সে কি তার সামনে মাথা ঝুঁকাবে?’ নবি (সাঃ) বললেন, “না!” সাহাবি আবার প্রশ্ন করলেন, ‘তাহলে কি তাকে জড়িয়ে ধরে চুমু খাবে?’ তিনি বললেন, “না।” সাহাবি আবার প্রশ্ন করলেন, ‘তাহলে কি তার হাত ধরে মুসাফাহা করবে?’ তিনি বললেন, “হ্যাঁ!”

দুজন মুসলিম একসাথে মুসাফাহা করলে আল্লাহ তাদের দুজনকেই ক্ষমা করে দেন। যদি এই মুসাফাহা করা হয় একমাত্র আল্লাহর জন্য। তাই মুসলিম ভাইয়ের সাথে দেখা হলে প্রথমে সালাম দেবো। এরপর হাত মেলাব। এটাই মুসাফাহা করা। মানে একজনের হাতের তালুর সাথে আরেকজনের হাতের তালু স্পর্শ করা।

মুসাফাহা মানে কিন্তু ‘হ্যান্ডশেইক’ করা নয় বা হাত ঝাঁকানো নয়! মুসাফাহা করা সুন্নাহ। আর ‘হ্যান্ডশেইক’ করা অমুসলিমদের রীতি। তাই মুসাফাহার সময় হাত ঝাঁকাবে না। হাতে হাত ধরে কুশলাদি জিজ্ঞেস করবে। আগে হাত ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবে না। যখন অন্যজন হাত ছেড়ে দেবে, তখন তুমিও ছেড়ে দেবে। নবিজিও তা-ই করতেন।

ওহ! আরেকটা কথা! মুসলিম ভাইয়ের সাথে দেখা করবে হাসিমুখে। নবিজি বলেছেন, “তোমার ভাইয়ের প্রতি মুচকি হাসাও সদাকা।”

দরজায় কড়া নাড়ার আদব

একদিন ইমাম আহমাদ বসে ছিলেন তাঁর ঘরে। হঠাৎ অনেক জোরে শব্দ হলো দরজায়। ইমাম আহমাদ দ্রুত বের হয়ে এলেন ঘর থেকে। আর বললেন, ‘বাড়িতে পুলিশ এসেছে নাকি!’

দেখা গেল পুলিশ নয়, এক মহিলা এসেছে তাঁর কাছে মাসআলা জানতে!

হঠাৎ প্রচণ্ড শব্দে মানুষ ভয় পেয়ে যায়। মনে হয় যেন বাড়িতে চোর-ডাকাত এসেছে অথবা পুলিশ এসেছে! তাই উচ্চ শব্দে কড়া নাড়া উচিত নয়।

সাহাবিরা কড়া নাড়তেন মৃদুশব্দে। নবিজির দরজায় টোকা দিতেন নখ দিয়ে। ঘরের বাইরে থেকে নাম ধরে ডাকাডাকি করতেন না।

তুমিও তা-ই করবে। কারও বাড়িতে গেলে প্রথমে টোকা দেবে দরজায়। কেউ কাছে থাকলে এটুকু শব্দই যথেষ্ট। আর যদি বুঝতে পারো দরজার কাছে কেউ নেই, তাহলে কড়া নাড়তে পারো। অথবা কলিং বেল চাপতে পারো। তবে হাতের তালু দিয়ে দরজায় ধাক্কা দেবে না। জেনে রেখো, “যে কাজে কোমলতা থাকে সেটি সুন্দর হয়।”, নবিজি বলেছেন। এভাবে তিনবার শব্দ করবে। প্রতিবার শব্দ করার পর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করবে। হয়তো ভেতরের লোক খাওয়া-দাওয়া করছে, ওজু-গোসল করছে কিংবা সালাত পড়ছে। তাই এতটুকু সময় অপেক্ষা করবে, যেন একজন ব্যক্তি চার রাকাআত সালাত শেষ করতে পারে!

তিনবার শব্দ করার পরেও সাড়া না পেলে আর দরজা ধাক্কাবে না। সেখান থেকে চলে আসবে।

নবি (সাঃ) বলেছেন, “তিনবার অনুমতি চাওয়ার পরেও অনুমতি না পেলে চলে আসবে।”

না জানিয়ে দেখতে আসা

একবার একলোক বিশ্রাম নিচ্ছিল তার ঘরে। এমন সময় দেখা করতে এল এক বন্ধু। ঘরে-থাকা লোকটি তার ছেলেকে বলল, ‘তুমি বলে দাও, আমি বাসায় নেই!’ছেলেটি বলল, ‘আব্বু বলেছে, আব্বু বাসায় নেই!’

একথা শুনে বাইরে-থাকা-লোকটি বুঝে ফেলল, তার বন্ধু বাসাতেই আছে, কিন্তু সে মিথ্যা বলছে!
এতে সে রাগ করে চলে গেল। আর কিছুটা দুঃখও পেল। এভাবে দুজনের বন্ধুত্ব নষ্ট হয়ে গেল।

তাই সরাসরি  বলে দেওয়াই ভালো, ‘কিছু মনে করো না। আমি এখন ব্যস্ত! পরে তোমার সাথে দেখা করব, ইনশা আল্লাহ।’

কাউকে চলে যেতে বললে তারও উচিত খুশি মনে চলে যাওয়া। কারণ আল্লাহ তায়ালা বলেছেন,

যদি তোমাদেরকে বলা হয়, ‘ফিরে যাও, তাহলে ফিরে যাবে, এটাই তোমাদের জন্য বেশি পবিত্র’। (সূরা নূর, ২৮ নং আয়াত)

কাউকে না জানিয়ে দেখা করতে আসা ঠিক নয়। কারণ সবারই ব্যস্ততা থাকে। হয়তো ভাবছো, কীসের এত ব্যস্ততা! না! ব্যস্ততার কথা জানতে চাওয়াও ঠিক নয়।

পরিচয় দেবো নাম বলে

একদিন জাবির (রাঃ) এসে কড়া নাড়লেন নবিজির দরজায়। নবিজি (সাঃ) বললেন, ‘আমি!’ এই জবাব শুনে নবিজি অখুশি হলেন। তিনি বললেন, “আমি! আমি কে?” তাই সাহাবিরা দরজায় শব্দ করার পর নিজেদের নাম বলতেন। যেন ভেতরের লোক বুঝতে পারে কে এসেছে।

দরজার ওপাশ থেকে পরিচয় জানতে চাইলে নিজের পুরো নাম বলবে। কারণ একজনের সাথে আরেকজনের কন্ঠের মিল থাকে। তা ছাড়া এক-দু কথায় চেনাও যায় না। তাই শুধু ‘আমি’ বললে পরিচয় বোঝা কঠিন।

ইমাম হব না অতিথি হলে

একদিন মালিক ইবনু হুয়াইরিস (রাঃ) গেলেন তাঁর বন্ধুর বাড়িতে। সালাতের সময় তারা মসজিদে গেলেন। সালাতের ইকামাত দেওয়া হলো। তখন মুসল্লিরা ইমামতি করতে বললেন মালিককে। তিনি এই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন বিনয়ের সাথে। আর বললেন, ‘আপনারা কেউ ইমামতি করুন!’

মালিক বললেন, ‘নবি (সাঃ) বলেছেন, “তোমরা কারও সাক্ষাতে গিয়ে ইমামতি কোরো না। তাদের মধ্যেই কোনো ব্যক্তি যেন ইমামতি করে।” তাই কোথাও বেড়াতে গিয়ে নিজে থেকে ইমামতি করবে না।

জুতা খুলে সাজিয়ে রাখব

কারও বাড়িতে প্রবেশ করার সময় তাড়াহুড়া করবে না। বের হওয়ার সময়েও ধীরেসুস্থে বের হবে।

ময়লা জুতা নিয়ে ঘরে ঢুকবে না। জুতা খোলার আগে দেখবে, জুতায় কাদামাটি লেগে আছে কিনা। পাপোশ বা মাটিতে ঘষা দিয়ে জুতার তলা পরিস্কার করে নেবে। জুতা খোলার আদব খেয়াল রাখবে।

নবি (সাঃ) বলেছেন, “পরার সময় ডান পায়ের জুতা আগে পরবে, আর খোলার সময় বাম পায়ের জুতা আগে খুলবে।”

জুতা রাখার জায়গায় জুতা রাখবে। দরজার সামনে এলোমেলো করে ফেলে রাখবে না। অন্যের জুতার ওপর জুতা রাখবে না। নইলে তার জুতায় কাদামাটি ও ময়লা লেগে যাবে।

বসার আগে অনুমতি নেব

হাতিম তাঈ ছিলেন আরবের বিক্ষ্যাত দানশীন। তার ছেলের নাম আদি। আদি ইসলাম গ্রহণ করে মদীনায় এলেন। এরপর নবিজির সাথে দেখা করলেন। নবি (সাঃ) তাকে বসতে দিলেন গদিতে। আর নিজে বসলেন মাটিতে।

আদি বললেন, ‘আপনিই গদিতে বসুন!’ নবিজি বললেন, “না তুমি বসো!” আদি আবারও একই কথা বললেন। নবিজি বললেন, “না, তুমিই বসো।” শেষে গদির ওপরেই বসলেন আদি। গদিটি ছিল চামড়ার। ভেতরের ছিল খেজুর পাতা।

মেজবান যেখানে বসতে দেবে, মেহমানকে সেখানেই বসতে হবে। কারও বাসায় গিয়ে যেখানে-সেখানে বসবে না। ঘরের ভেতর চোখ পড়ে, এমন জায়গায়ও বসবে না।

Mufti. Mohammad Ashraful Islam
Ethics Education Teacher, DISS
Khatib, Central Mosque, Daffodil Smart City
Ashuli , Savar, Dhaka