Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Mohammad Nazrul Islam

Pages: [1] 2 3 ... 10
1
Common Forum / চির সনাতন
« on: October 22, 2021, 02:56:06 PM »

বাজিছে ব্রহ্মশির, পশুপত, বাসবী, তোমর ধ্বণি
উচ্চ স্বরে, বীর-বারুন, শকুনী-তরুনের গর্জনী।

অন্যায়-এ, শানিত ত্রিশূলের ধার-
খর্ব করিব, নিলাম দেবতার বর ।

সেনাপতি অর্জুন দম্ভ করি ; হাকিল সৈন্য দল,
প্রজ্ঞা লহ; বীনাপানির স্বরণে-
আদেশ লহ শিরে, তব ভগবান রামে,
সীতা উদ্ধারে, ধীক রাবনের হীন কামে।

ভগবান রাম স্থীর, স্তদ্ধ; তব প্রাণ-বিষন্ন পত্নী শোকে-
কি করে রাখিবে আজ তব সত্যের মান ।

অর্ন্তযামি দিব্য দৃষ্টিতে দেখিলেন-মহাভারতরণ
সত্যের বিজয়ে আজ হনুমানের সাহায্য প্রয়োজন ।

সভাসদ নারাজ, বনের পশু- ক্ষুদ্র-অতি নগন্য,
তার কি প্রয়োজন? থাকতে মহাবীর-বরেণ্য ।

চলিল, সৈন্যদল আগে-পিছে লয়ে মহারথীবল
লংকার শুচি, রাবন-মস্তক ছাড়িল বিষাদ-বারি/জল।

সৈণ্যদল দেখে, অসীম জল রাশি চৌ-দিকে ঘেরা
সতী মাতা সীতাসাধবী বন্দি তব দুর্যর্ধন দ্বারা।

নাই কূল-পথ-পার, আর কি উপায় ?
উঠিল ক্রন্দন সৈণ্যদলে ভিতরে হায় হায়!!
বড়-ধড়, বড় বাহু; অসস্থি দরবার-
সকলেই বিফল, বিষন্ন উপায় নাই আর!

পিছন হতে সহসা হনুমান করিল রাম-ধ্বনি
মিলল স্বদলে বানর, অরণ্যে হতে লতাপাতা আনি-
ফেলিছে সিন্ধুসম জলে!! নিমিষেই হইল রাস্তা-

চলিল, সৈণ্যদল বীরর্দপে করিতে লংকাজয়
দেখিল, সীতাবন্দি দ্বি-তলায়, চৌ-দিক অগ্নিময় ।

কেউ না পারে যেতে হেথা, হয়ে অগ্নি-পার
সকলেরই চিৎকার বানরের বড়ই দরকার ।

জীবন বাজি রেখে হনুর দল-
সীতাকে উদ্ধার করিল হইতে দ্বি-তল’
হইল জয়-জয়কার:  অশুভ বারন পরাজিত;
বীর সেনাপতিরা পুরস্কার নিতে রাজগীরে আগত ।

সকলেই পাইল মনি-মানিক্য আর গজ-মতিহার
সীতা উদ্ধারে হনুমানের রয়েছে কি পাইবার-??

রাজ সভায় উঠিল সহসা ধ্বনি!!
অংগুলি নির্দেশে ভগবান বলিলে-সীতা গুণমনি।

তৎক্ষণিক মাতা সীতা নিজ গলার হার
ছুড়িয়া ফেলিলেন বানরের গলে তার ।

হনুর দল পাইয়া বীরের পুরস্কার-
শুকিয়া-চিবাইয়া ছিড়িয়া ফেলিল সকলই তার ।

সভাসদ দলে হাসে সকলে, এর কি প্রয়োজন!!
বানরের গলে- কেন মুক্তার আয়োজন??

হনুমান ছড়িয়া চোখে পানি বলিল- বীনাপানি
বলিতে চাহি আজ কিছু, খুলে দাও জবান খানি ।

ভগবানের বড় কৃপা; সহসা খুলিল জবান-
বলিল হনু,-অমূল্য রত্নে আমার নাই প্রয়োজন?

আমি ভালবাসি মোর আদি পিতা-
জপি তব- রাম, রাম -ভালবাসার প্রয়োজনেই
-বাচাঁয়াছি মাতা সীতার প্রাণ ।

আমি অতি ক্ষুদ্র-নগন্য জানি-তব মোর ভালবাসা,
অতল অসীম -সিন্ধু সম দামি ।

বলিল সভাসদ দল-পরীক্ষা দিতে হবে ?
ভালবাসার অতল-অসীমতা-
যাতে রয়েছে পূর্ণ-ভক্তি, ব্রতা ।

হনু দেখাতে সে প্রেম-ভক্তি, ভালবাসা
নিজের পাজঁর ফারিয়া দেখাইল সেথা
-ভগবান রামের ছবি আকাঁ।

সভাসদ দলে, যত ছিল গুণি, মানি -
জয়ধ্বনি উঠিল- ভালবাসা-ই দামি ।

কাল জয়ী সেই ভালবাসা-জন্ম-জয়ন্তে ঘেরা
পবন-নন্দন হলেন, সনাতনের সেরা।












2
সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় অনুষ্ঠানের সবচেয়ে বড় আনন্দ আয়োজন শারদীয় দূর্গোৎসব। হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশাল জনগোষ্ঠীর অনেক আনন্দ, উল্লাস এবং বিনোদনের আনুষ্ঠানিকতা লক্ষ করা যায় এমন উৎসবে। শুভ মহালয়া থেকে চণ্ডীপাঠ, মহালয়ার ঘট স্থাপন ও বিশেষ পূজার মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গাকে মর্ত্যলোকে আমন্ত্রণ জানায় ভক্তকুল।

অশুভ শক্তির বিনাশ করে শুভ শক্তির প্রতিষ্ঠার করার লক্ষ্যে মর্ত্যে আসে দেবী দুর্গা। তাদের পূজা মণ্ডপে মহাষষ্ঠী, মহাসপ্তমী, মহাষ্টমী এবং মহানবমীতে সকল হিন্দু সম্প্রদায় অর্থাৎ হাজার হাজার নারী-পুরুষ ধর্মীয় নানা আচার অনুষ্ঠান পালন করে।

বলা দরকার, হিন্দু শাস্ত্র অনুযায়ী দুর্গা পূজার দিন ক্ষণ গণনা শুরু হয় মহালয়ার দিনে অর্থাৎ ২৬ সেপ্টেম্বর ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে পাঁচদিনব্যাপী শারদীয় দুর্গোৎসবে আনন্দকে কেন্দ্র করে। তাই এ দূর্গোৎসব হিন্দুদের অবশ্যই বিশুদ্ধ পঞ্জিকার আলোকেই নির্ধারণ করা হয়। শারদীয় দুর্গোৎ​সবের শুভ দশমীটাই তাদের কাছে শেষ দিন।

আর এই শুভ বিজয়ার দশমীতে পূজা সমাপন করে এবং দেবী দুর্গাকে বিসর্জনে ব্যাস্ত সকল হিন্দু সম্প্রদায়। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বন্ধনে তারা এদেশ ও সারা বিশ্বে ৩০ সেপ্টেম্বর সনাতন ধর্মীয় জনগোষ্ঠী সকল মানবের চাহিদাকে পুরনের লক্ষে সর্ব বৃহৎ দেবী দুর্গাকে মণ্ডপে দাঁড় করানোর বাসনায় জাগ্রত হন।

পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, তারা মহানবমী উপলক্ষে অনেক পূজা মণ্ডপে আরতি প্রতিযোগিতা এবং প্রসাদ বিতরণ করে। দশমীতে সব মণ্ডপে থাকে বিষাদের সুর। কারণ, তাদের শুভ বিজয়া দশমীর এই দিনে দূর্গাকে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে মর্ত্য ছেড়ে কৈলাসে স্বামী গৃহে ফিরে দুর্গতিনাশিনী দেবী দুর্গা।

সুতরাং এই দিনে বাহির হয় ভক্তদের শোভাযাত্রা, দেবী দুর্গাকে বিদায়ের মাধ্যম হিসেবে জলে নৌকা নয়তো স্হলে রংবে রংয়ের ট্রাকে সাজ সজ্জা ঘটিয়ে আনন্দ উল্লাস করে হিন্দু সম্প্রদায়। বিদায় বেলায় শত সহস্র ভক্তদের আনন্দ-উল্লাসে আর বিজয়ার অশ্রুতে আকাশ বাতাস কম্পিত হয়ে উঠে।

দেবী দুর্গাকে স্বর্গালোকে এমন বিদায় দেয়ার আয়োজন সত্যিই সনাতন বিশ্বাসী ধর্মাবলম্বীদের গভীর আত্তায় শঙ্খ ধ্বনি এবং ঢাকের তালে তালে কম্পিত হয়। তাদের এমন দেবী দূর্গাকে বিদায়ের সুরের সাথে সঙ্গী সাথী করে গবীব দুখীকে।

তবে এবারে দূর্গা দেবীর বিদায় নেওয়াটা অবশ্যই ঘোটক বা ঘোড়া কেন্দ্রিক অর্থাৎ ঘোড়ায় চড়ে দেবী দুর্গা গমন করবে স্বর্গালোকে। সেহেতু এমন বিদায়ের ফল শ্রুতিতে অনেক রোগ-ব্যাধি বাড়বে বৈকি এবং অনেক ফসল নাকি নষ্টও হবে। সনাতন ধর্ম বিশ্বাসীদের এমন ধারনা এবং তাদের বিশুদ্ধ পঞ্জিকায় তার যথাযত সত্যতার প্রমাণ মিলে।

তবে দেবী দূর্গা এসেছিল নৌকায় চড়ে, ধর্মের আদর্শ বার্তা নিয়ে বছর ঘোরে বারংবার দেবী দূর্গা আসে মর্ত্যলোকে অর্থাৎ পৃথিবীতে। এজগতের মঙ্গল কামনায়, তাই বিশ্বাসী হিন্দু সম্প্রদায় বলেন, এমন আগমনের ফলেই অতি বৃষ্টি ও শস্য বৃদ্ধি হবে।

হিন্দু সম্প্রদায়ের হাজার হাজার নারী-পুরুষ ধর্মীয় এমন অনন্দে ঘরে ঘরে পূর্ব পুরুষদের উদ্দেশ্যে আপ্যা-য়নে তৈরী করে জল-তিল-অন্ন। এমন উৎসর্গ তাদের অনেক আনন্দ দান করে। তারা মনে করে, পিতৃ পক্ষে প্রয়াত আত্মারা স্বর্গ থেকে মর্ত্যলোকে আসে। মৃত আত্মীয়-পরিজন এবং তাদের পূর্ব পুরুষদের আত্মার প্রতি মঙ্গল কামনা করার একটি শুভ দিন।

সনাতন ধর্ম বিশ্বাসীরা এই দেবীপক্ষকে সবচেয়ে শুভ দিন মনে করেই নতুন নতুন পোষাক ও সামর্থ্য অনুযায়ী ভাল ভাল খাবার তৈবী করে। এ সময় তারা সব ধরনের শুভ কাজ সম্পন্ন করে থাকে। পুরাণের কথায় বলা যায়, অসুর শক্তির নিকট পরাভূত দেবতারা স্বর্গলোকচ্যুত হয়েছিল। চারদিকে অশুভের প্রতাপ। তাই এ অশুভ শক্তিকে ধ্বংস বা বিনাশ করতেই একত্র হন দেবতারা। অসুর শক্তির বিনাশে অনুভূত হয়েই এক মহা শক্তির আবির্ভাব।

সুতরাং সেই দেবতাদের তেজরশ্মি থেকেই আবির্ভূত এক বৃহৎ শক্তি তিনিই হলেন অসুরবিনাশী দেবী দুর্গা। পুরাণ মতে বলা যায়, রাজা সুরথ প্রথম দেবী দুর্গার আরাধনা শুরু করেছিল। বসন্তে তিনি এ পূজার আয়োজন করায় দেবীর এ পূজাকে বাসন্তী পূজাও বলা হয়। কিন্তু রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধার করতে যাওয়ার আগে শ্রীরামচন্দ্র দুর্গা পূজার আয়োজন করেছিল।

শরৎ কালের এ পূজাকে হিন্দুদের মতে বলা চলে, অকালবোধন। তাদের ধর্ম মতে, এ দিনেই দেব-দেবীকুল দুর্গা পূজার জন্য নিজেদের জাগ্রত করে। মহালয়ার দিনে সূর্য উদয়ের আগেই শঙ্খধ্বনি এবং চণ্ডীপাঠের মধ্য দিয়ে মন্দিরে মন্দিরে নারী-পুরুষ, ধর্ম-বর্ণ, নির্বিশেষে সকল হিন্দু সম্প্রদায় দেবী দূর্গাকে আবাহন জানায় এবং উল্লসীত সুরেলা কন্ঠে জয়ধ্বনি তোলে, সবার বলো "দূর্গা মাইকি জয়"।

-মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম/বাংলাটপনিউজ২৪.কম

https://banglatopnews24.com/osobosoktir-benas-kora-sobo-sokter/

3
Common Forum / অচিন পাখী
« on: October 01, 2021, 12:55:20 PM »
দূর-আকাশে উড়িঁয়ে দিলাম
আমার সুপ্ত ভালবাসা,
শব্দহীন চোখের জলে
-খুজঁতে তারে ভাষা।।

উড়ঁছে মায়া, অন্তগিরি
ছুটছে জোরে গতি,
গগণভেদী আকাশ ছেদী
-ধ্রুব-তারা-জ্যোতি।।

সপ্তরেখার দূর-নীলিমায়,
দূরন্ত তার ছায়া,
দিক ছড়িয়ে মাঠ পেরিয়ে,
-দৃষ্টি কারা কায়া।।

শূন্যে উড়ে শূন্যে ঘুরে
শূন্যে তাহার বাস,
নীলপরীদের মন মাতিয়ে
-মিটে তাহার আশ।।

হৃদ-আকাশে বাধঁনছেদী
বিশাল ভূবন পেয়ে,
নাচে-পাখী, ফিরে ঘুরে
-সপ্ত রঙ্গ গেয়ে।।

আধাঁর কালো আমার আকাশ
নিত্য ঝড়ে বারি,
পুরনো সেই স্মৃতি কথা
-প্রেম-বিরহে তারই।।

ফিরি গেয়ে জগৎ ধেয়েঁ,
গীত বিরহী প্রাণ,
অচিন পাখীর অচিন ভাষা,
-অচিন ছিল-গান।।



https://banglatopnews24.com/ochin-phaki/

4
Common Forum / অবিনাশ !
« on: September 22, 2021, 10:37:04 AM »
স্বর্ণলতা কয়`না কথা
মুখটা কেন ভার ?
হৃদ সাগরে মানিক জ্বলে
প্রেম-তরঙ্গে তার।।

নিত্য আড়ি পাড়ে তারই
দিতে কমল দোলা,
পেখম মেলে নৃত্য করে
চিত্ত করে খোলা।।

সমিরনের তালে তালে
বুঁকের গভীর হতে,
ভালবাসার বান উঠে, তার
ইচ্ছা-গতি মতে।।

রশিক মাঝি, কাজের কাজী
বুঝে বাও-এর, ভাও-
দাড়ঁ ঘুরিয়ে নোঙ্গর খোলে,
সামাল সামাল নাও।।

আমি তৃর্ণ সুক্ষ্ম অতি
বুঝি কি আর মতি-গতি ?
তবু মনে এ-ভীমরতি !
সদ্কা পেতে ফাঁউ।।


https://banglatopnews24.com/obinas/

5
Common Forum / মিতুয়া-
« on: September 14, 2021, 09:56:25 PM »
গগণ জুড়ে মেঘ জমেছে
আধাঁর পড়িতে সাড়া,
-শুষ্ক মাঠের তপ্ত বালু
ভিজঁতে অঝোর ধারা।।

নৃত্যমগ্ন কালের চাঁতক
প্রিয়সী জনের আশে,
-সময় রীতে স্বরুপ গীতে
পেতে তারে পাশে।।

অসীম সুদূর বিজন ‘প্রিয়,
ধূধূঁরিয়া আশা,
-তৃষিত মনে সংগোপনে,
করবে ভালবাসা।।

হাসিঁ-কাঁন্না দোলাচলে
চলছে কালের ধরা,
-রশিক-সুজন বড়ই কু‘জন,
করে ছলা-কলা।।

অন্ধ-আশার বন্ধ-বেড়ী
প্রেম-বাসনা মনে,
-প্রনয় গীতের এই বরিষন
অলি-ফুলের সনে।।

https://banglatopnews24.com/mittoya/

6
Common Forum / হারানো সুর !
« on: September 02, 2021, 08:23:51 AM »
তোমার যত দান
বন্ধন-ভেরী- শৃংখল,
গিয়াছে আজ মুছেঁ-
নদের-নদিয়া পড়েছে টুঁটে।।

ভালবাসার যত কথা
অ‘মুখ ভাবনা-বিলাশ,
বিরাগ-রাগীনি তলে
হয়েছে বিনাশ।।

হাতে-সাথে, বুকে-মুখে
যত ছিল আশা-
সকলই সুদূর অতীত
মিছে ভালবাসা।।

যত ছিল প্রেম
হেরী; মম কল্পলোক
স্বরুপ, বাসনা-পরম
দু‘লোক-ভূ‘লোক।।

আজ, ছায়াহীন কায়ায়
চলছি জীবন রথে-
আগে-পিছে পাল্লা দিয়ে
মরনের পথে।।

ধরণীর রুপ-রস যত
ছিল, পথিক পরিজন-
সকলই আজ বিমুখ-বিষন্ন
কালের আয়োজন।।

যত ভাবনা, আশা-ভাষা
হৃদয়ের রক্ত ক্ষরন-
আপনি আপনাতে
করেছি সমর্পন।

তবু লীলা, ধূলি তলে
গড়িতে সিন্ধুগিরি-
জনম জনম ফিরিব, পিয়াসে
স্বর্গ-মর্ত্ত্য জুড়ি।।

যদিগো, কোন দিন
অসার অবেলায় প্রিয়
মনে পড়ে মোরে,
করিও ক্রন্দন গীত
নিরব নির্জনে।।

ভাবিব, আমি আছি
তব তুমা হিয়া তলে-
আসার জগত যদিও যাক
মোরে‘ ভুলে।।
https://banglatopnews24.com/harano-sor/

7
Common Forum / পাগলামী
« on: August 08, 2021, 01:42:56 PM »
জগপুঁরীতে বাঁজ ফাঁটিল
-আওয়াজ বিকট অতি
শব্দহীন মন আমার,
ডরে কি আর ক্ষতি?

সব হারিয়ে ভয় তাঁড়িয়ে
-চলছি পথে একা
নিজের সাথে আপনারে,
পাইনি কবু দেখা।।

নেশার তুরে চলছি ঘুরে
-অকূল ধারা গতি
তাল মাড়িয়ে ঝাঁল ছড়িয়ে,
ভাঁসিয়ালী মতি।।

আওয়াজ-ক্যাউয়াজ, লংকাপুরি
-যখন যেমন বাও
চলন, চলি আপন তালে,
বলন আমার ফাঁউ।।

এমনি চলা, চলছে এ-মন
-খিল খিলিয়ে হাসিঁ
মন্দ গনা, মন্দ শুনা,
মন্দ ভালবাসি।।

ফুটুক ভাজি, উঠুক জাগি
-মন, মহাজন-কাজী,
অধর বুঝি মরিচিকা
ধরতে মরন বাঁজি।।


8
‘দেনা-পাওনার জীবনে আনন্দ-মূখর আরও একটি দিন ‘পবিত্র ঈদ-উল আযহা-২০২১ ইং কেঁটে গেল গত ২১শে জুলাই রোজ বুধবার। যদিও এবারকার ঈদ-আনন্দ করোনা নামক মরণব্যাধির যাতাকলে চাপা পড়ে বিদীর্ণ, তবু হাসিঁ-কাঁন্নার দুনিয়ায় গরিবের ঈদআনন্দ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণের শ্বাস-প্রশ্বাস। কর্ম-ব্যস্ত জীবনে, ঈদের এই ক্ষণিক আনন্দ নিম্ন কিম্বা নিম্ন-মধ্যবিত্তদের কাছেই স্বর্গময় সুখ তুল্য।

ঈদ পালনে কর্ম-ব্যস্ত প্রতিটি নিম্ন কিম্বা নিম্ন-মধ্যবিত্ত শহরমূখী মানুষ তাদের ঘর্মাক্ত দেহ নিয়ে ছুটে চলে যান জন্মের শিকড়ে ‘শান্তির নীড় ছোট ছোট গ্রাম গুলোতে’ প্রিয়জনের মূখ দর্শনের জন্য। একযুগ-দুইযুগ পর দেখা অবহেলিত সেই মুখখানা কারও কাছে হয়ে উঠে স্বর্গের বাতায়নসম।

কোন কোন ক্ষেত্রে বয়োঃবৃদ্ধ বাবা-মা, দাদা-দাদী কিম্বা নানা-নানী তার একমাত্র সহায়কে কাছে পেয়ে নব-জাতক শিশুর মত সোহাগে কেঁদে উঠেন ‘-অত দিনে আমার খোঁজ নিলি বাবা-এই সুরে। শুরু হয় আদর-সোগাহের মান-ভাঙ্গানীর পালা। এই মান-ভাঙ্গানীর পালাবদলে আচ্ছ্বাশিত হয় ঈদ-আনন্দধারা।

ঈদের দুই-একদিনের এই আনন্দধারা যেন, খড়স্রোত নদীর প্রবাহে মলিন হয়ে যায় মুহূর্তের মধ্যে। আবার এই ক্লান্ত, পরিশ্রমী, সুবিধা বঞ্চিত, অনাথা শ্রেনীর মানুষ গুলোর মনের আবেগ ফুরাতে-না-ফুরাতেই পেটের টানে ফিরে আসতে হয় শহরের কর্মময় রোদ্রতপ্তের চির অব্যস্ত বাস্তবতায় ছায়ায়। এ যেন কবি কাজী নজরুলের ‘প্যাঁচার সুখ-দুঃখের কল্প-কাহিনী।

অন্যদিকে, অভিজাত শ্রেনীর কাছে ঈদের আনন্দ অনেকটাই ‘পান্তা ভাতে ঘি ঢালার মত। এই শ্রেনীর মানুষেরা অনেকটাই টাকার ‘গোলাম। ওদের জীবনঘড়ি চলে- টাকার সেকেন্ডে। টাকার নেশায় তারা দয়া-মায়া বঞ্চিত। তারা অর্থের কাছে জীবন বিক্রি করে শূন্য পাত্র হাতে চাঁদের আলোয় সুখ-খোঁজে। এর ফলাফলে দেখা যায় কোটিপতি বয়োঃবৃদ্ধ পিতা-মাতাকে শেষ বয়সে আশ্রয় নিতে হয় অনাথ-আশ্রমে কিম্বা মেনে নিতে হয় পৃথিবীর নিকৃষ্ঠতম যন্ত্রণা দায়ক মৃত্যূকে। ছেলে-পিতা-মাতা, কিম্বা-পিতা-মাতা ছেলের মুখে দেখা থেকে বঞ্চিত হন মৃত্যু নামক কঠিন সময়টিতেও। তাদের কাছে ঈদ কেন? কোন আনন্দই প্রশান্তিময় নয়।

জীবন বঞ্চনার ইতিহসে নিম্ন কিম্বা নিম্ন-মধ্যবিত্তরা কালের স্বাক্ষী। ঈদ মানেই তাদের কাছে গ্রামে ফেলে আসা বয়োঃবৃদ্ধ মা-বাবা কাঁন্নাভরা আদর- সোহাগের সুরধ্বনি। কিম্বা ছোট বেলার মায়ের ‘আচঁলে মুখ মুছার গল্প’। তাই ঈদ মানেই আমার মায়ের স্বর্গময় সুখের হাসিঁ; মাগো আমি তোমায় ভালবাসি।

9
 

বাংলাদেশ তথা দক্ষিণ এশিয়ায় শিক্ষা বিস্তারে ‘ড্যাফোডিল গ্রুপ একটি বিশ্বস্ত নাম। ড্যাফোডিল গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা জনাব সবুর খানের অনন্য অবদান ‘ড্যাফোডিল আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারী স্থাপনায় বাংলাদেশে তথা বিশ্বে নামি-দামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনুকরনীয় উদাহারণ। খুব অল্প সময়ে সুশীল শিক্ষা, সচেতন মনোভাব, নীতি-নৈতিকতা ও উৎকৃষ্ট ‘মান নিশ্চিত করে বর্তমানে এই ‘ড্যাফোডিল অন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়টি সমগ্র দেশ তথা বিশ্ব -ব্যাপী এক বিশেষ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

গত ১১ জুলাই ২০২১ইং সালে, দেশের এই অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপিঠটির দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্বভার গ্রহণ করলেন দেশের প্রথিতযশা, শিক্ষাবিদ, ও পন্ডিত ব্যক্তিত্ব জনাব প্রফেসর ডঃ মোঃ লুৎফর রহমান।

জনাবের এই দায়িত্ব গ্রহণে ড্যাফোডিল পরিবারের সকল অঙ্গ-সংগঠন বিশেষ করে অত্র বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বিভাগ গর্বিত, আনন্দিত, ও আবেগ-আপ্লুত।

ব্যক্তিগত জীবনে জনাব প্রফেসর ডঃ লুৎফর রহমান, বিনয়ী, স্বল্পভাষি, ও বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এক পন্ডিত ব্যক্তিত্ব। বরাবরই তার শিক্ষাও কর্ম জীবন ইতিহাস স্বরণীয়।

তিনি ১৯৬০ সালে রংপুর থেকে কৃতিত্বের সাথে ম্যাট্রিকুলেশন (Matriculation) পাশ করেন। তৎপর ১৯৬২ সালে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইন্টার সাইন্স (Inter Science) পাশ করেন।  ১৯৬৫ সালে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি অনার্স (B.Sc. Honors) এবং ১৯৬৬ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে প্রথম বিভাগে এমএসসি ,পদার্থ (M. Sc.) ডিগ্রী  লাভ করেন।

১৯৭২ সালে তিনি ইংল্যান্ডের Loughborough University থেকে M. Sc. (Dept. of Electronic and Electrical Eng. Loughborough University, England) এবং  একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি Ph.D. (Dept of Electronic and Electrical Eng. Loughborough University, England) লাভ করেন। জনাব লুৎফর রহমান সাহেব ১৯৬৭ সালে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন Bangladesh Atomic Energy Commission-এ সায়েন্টিফিক অফিসার (Scientific Officer) হিসাবে তার কর্ম জীবন শুরু করেন। ১৯৭৬ সালে তিনি পদোন্নতি লাভ করে সিনিয়ার সায়েন্টিফিক অফিসার (Senior Scientific Officer) পদে আসীন হন।

১৯৭৭ সালে তিনি লেকচারার (Lecturer) হিসাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দান করেন। ১৯৮৪ সালে তিনি সহকারী অধ্যাপক (Assistant Professor) এবং ১৯৮৭ সালে তিনি নিজ কর্ম দক্ষতায় সহযোগী অধ্যাপক (Associate Professor) পদে পদোন্নতি পান। ১৯৯২ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সাইন্স (Computer Science) বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব লাভ করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি শিক্ষকতা জীবনের সর্বোচ্চ ‘অধ্যাপক’ (Professor) পদে পদোন্নতি লাভ করেন।

২০০৮ সালে তিনি গণ-প্রজাতন্ত্রি বাংলাদেশ সরকারের নিবার্হী আদেশে রংপুরে ‘বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের’ প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চ্যান্সেলর (Founder Vice Chancellor) পদে যোগদান করেন। সর্বশেষ ২০১০ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার দীর্ঘ শিক্ষকতা জীবনে অবসর লাভ করে ২০১১ সালে তিনি ‘ড্যাফোডিল আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর (Vice Chancellor) (প্রথম মেয়াদ) যোগদান করেন।

তার কর্মদক্ষতা আর অসীম পান্ডিত্যে বিশ্ববিদ্যালয়টির উত্তোরত্তর সাফল্য রচিত হলে পুনরায় ১১ই জুলায় ২০২১ সালে পুনরায় (দ্বিতীয় মেয়াদে) ভাইস চ্যান্সেলর (Vice Chancellor) পদে যোগ দান করেন।

জনাব লুৎফর রহমান কর্মজীবনে সফলতার স্বাক্ষর হিসাবে তিনি দেশ-বিদেশী বহু পুরস্কার লাভ করেন।  তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- ১৯৯২ সালে “Halima-Sharfuddin Science Writer Prize” ১৯৯২ সালে, “Adhunik Computer Biggan ”- ২০০৫ সালে, রফিকুল ইসলাম ফাউন্ডেশন হতে “Best IT specialist of the year (2005)”, ২০১২ সালে বাংলাদেশ শিক্ষা পর্যবেক্ষন সোসাইটি হতে “Begum Rokeya Memorial Award 2012”, ২০১২ সালে Rapport Bangladesh হতে “12th Rapport Award for Excellence in Human Resource Development 2012, ।  Aimity University, Noida,-India হতে ‘Global Academic Excellence Award”, ওয়াল্ড ইডুকেশন কংগ্রেস সিএমও (এশিয়া)- হতে World Education Congress, CMO, Asia পুরস্কার সহ অসংখ পুরস্কার প্রাপ্ত হন। তিনি বাংলাদেশ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইটি সোসাইটির (Dhaka University IT Society) আজীবন সদস্য।

জনাব মোঃ প্রফেসর ড. লুৎফর রহমানের দায়িত্ব গ্রহনে সাধুবাদ জানিয়েছেন ড্যাফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান ড. মোঃ জনাব সবুর খান, প্রো- ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এস এম মাহবুব-উল-হক মজুমদার, ট্রেজারার-মমিনূল হক মজুমদার, রেজিস্ট্রার-প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার এ কে এম ফজলুল হক পিএইচডি, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক জনাব ড. মোঃ ইসমাইল জাবিউল্লাহ্ (পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক) ও উপ- পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আখতাবুলসহ সকল কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ।

সকলেরই আশা, জনাব প্রফেসর ড. মোঃ লুৎফর রহমান সাহেবের নেতৃত্বে  ‘ড্যাফোডিল আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়টি হয়ে উঠবে অপ্রতিরুদ্ধ ও অনুকরনীয় শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপিঠ।


     

10
Common Forum / দাগি -
« on: June 26, 2021, 10:33:24 AM »
ওরে, ও.. মুটে-মুজুর
উঠরে আজি জাগি;
বিপ্লবের এক ডাক তুলে ধর
হৃদয়ে নিয়ে রাগি।।

জ্বালাও-পুড়াও নীতি নিয়ে
জ্বালিয়ে দেহ-মন;
কার..রে তুরা, দু‘হাতে আজি
কংস রাজার ধন ।।

সারা দিনের অনাহারে
শ্রমের মুজুরদারী;
তাও দেবে না তবে কেন?
খাটিঁস শ্রমদারী ।।

পিতার মুখে ভাত জুঁটে না
মায়ের পরন খালি;
বোনের গায়ে আধঁ-খানা কাপড়
শত ছিন্ন তালি ।।

রক্ত চুষা বাদর ওরা
অর্থ কারি কারি:;
আমরা তাপি অনাহারি
কেন? করি সমুদ্দারী ।।

ভঙ্গরে তুরা ঐ পুজিঁবাদ
সাম্য নিয়ে ভাগি;
চেটিয়াদের নিমূর্লে আজ
হস‘না তুরা দাগি ।।

জীবন পাতের শেষের বেলায়
দাড়িঁ ভাঙ্গা কূলে;
জীবনমূখী ডাক তুলে ধর
সংগ্রামী এক বুলে।।

11
Common Forum / কুলনাশা-
« on: June 22, 2021, 11:30:44 AM »
তোমার যত দান-
অর্ঘ্য, প্রভা, কিরণ, জ্যোতি;
সময় বিবসন, বিভাবরী-
সুনাম, সুশীল সুখ্যাতি।।

প্রাণ মাঝে হর্ষ
বিনোদ-বণিতা;
চয়ণ-বিযোজন-
অসৎ-শুচিতা।।

নিত্য মনস, মণিষা
-প্রভাত কুঞ্জ বারি;
বিরহ- লহরি –বিনাষ
লোব্ধ ফুল মঞ্জুরী।।

বিষাদ- স্বপ্ন -আশা
নিত্য- গীত- ভাষা;
অসার, আষাঢ়-র্পূবাশা
অন্ধ-বন্ধু –ভালবাসা।।

আমাতেই তুমি, বিকাশিত-
প্রকাশিত, যতগুণ ধারা-
আমি-তুমি কে কোন জন?
ভিন্ন কি তোমার ধারা ।।

তবু, অবকাশে, বিষ্ণু বাতাসে
শিরদার উচ্চু করি,
পারিনি, অসহিষ্ণুতায়-
- ‘অধর’ কে ধরি-।।

সকল- সমতল, সমতায়
তুমি উঠ জাগি:
কোথা তুমা পাই? কোথাও যে নাই;
-তাই খুজিঁ জগৎ জুড়ি।।




12
Common Forum / ছড়া -
« on: June 14, 2021, 11:11:09 AM »
বাঙ্গী বনে শিয়াল রাজা
সূরের রাজা কোলা,
হাতি হলো বুকার রাজা
জাতির বুঝি জুলা !!

কালো বিড়াল নামের নিমাই
ছাগলের মূখে দাড়িঁ,
বুড্ডা দাদুর পা চলে না
চেলার বাড়াবাড়ি !!

কাক সাজিঁল ময়ূর বেশে
নেতা বনে হদু,
মসলা বাটেন খানে খানান
রান্না করে বদু !!

এই যে চলা, তালেই বলা
নিত্য তোষামুদি”
রং মাখিয়ে ডং দেখিয়ে
কার্য সিদ্ধির ফঁন্দি।

সুযোগ বুঝে হুজুক মশাই
 বনে যাচ্ছেন রাজা,
নন্দ বাবু তালে মাতাল
- চিরকুট- ডোল- বাজা !!

13
জাগতিক কর্মকারণের মূল- প্রেম। আর প্রেম-প্রমানের শ্রেষ্ঠ অলংকার ‘কলংঙ্ক,। ‘কলংঙ্ক, ব্যতিত প্রেম-ভোগ-বিলাশের ধারাপট। অনেক ক্ষেত্রেই অসার। প্রেম ভালবাসায় সামাজিক অবস্থানের তার- তম্যে অপবাদ বা ‘কলংঙ্ক-এর জন্ম।

অপবাদ বা কলংক-ই শ্রেষ্ঠ যা পরিশুদ্ধ মানবিক বিকাশে আত্ম-শুদ্ধি বাড়ায়। কিন্তু সমাজ ভিত্তিক এই জাগতিক অপবাদ বা কলংঙ্ক ধারন করার ক্ষমতা সকলের থাকেনা। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ‘সহ্য-ধৈর্য্য হীন হয়ে ভুক্তভোগীরা সামাজিক অশান্তি সৃষ্টি করে। ফলে কলংঙ্ক সার শব্দে পরিনত হয়।  যা সময় ভেদে ভুক্তভোগীর গোটা জীবন ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করে এবং ক্রমাগতই অশুদ্ধতার পথে টানে।

চিরন্তন কথা অপবাদ বা কলংক সহিবার শক্তি যার আছে সে শ্রষ্ঠার শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি ও জাগতিক সৃষ্টিকূলের স্বার্থক প্রাণী। সৃষ্টি জগতে স্থান, কাল ও সমাজ বিচারে অপবাদ বা কলংঙ্ক নারী -পুরুষ উভয়েরই- সমান প্রাপ্য হবার কথা থাকলেও দক্ষিণ-এশিয় অঞ্চলে নারীরাই বেশী ভূক্তভোগী হয়ে থাকেন ।

সাধারনত জাগতিক জাত-বিচারে নারীরাই অসমতল প্রেমযজ্ঞ আলোচনায় বেশী অপবাদ বা কলং- কৃত। যেমন হিন্দু ধর্মে রাধা কলংকীনি, ইসলাম ধর্মে গন্ধম খাওয়ার কারণে হাওয়া কলংকীনি। তবে অশুদ্ধ অঞ্চলগুলো কাম নিম্মর্জ্জিত বিধায় সেখানে অপবাদ বা কলংক অসার, জীবন জীবনের কাছে অর্থহীন নেশার পেয়ালা।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সৃষ্টি তত্ত্বে ‘প্রেম বা লীলাকীর্ত্তণ সৃষ্টি বিচারের মূরলীধারা। আর  অপবাদ বা কংলক জীবন পরিমাপের শ্রেষ্ঠ অলংকার।

শ্রষ্টার জাত-বিচারিক সৃষ্টি- নারী এবং পুরুষ। এ ছাড়া অন্য কোন জাত আছে কি না জানা নাই। বলতে দ্বিধা হলেও একটি পুরুষের সারা জীবনের কর্মযজ্ঞ নারী সাধনায় ‘নমঃস্য’। এই নমঃস্যতা মা-ভগ্নী কিংম্বা স্ত্রী-প্রেমিকায় পরি-সমাপ্তি। আজ পর্যন্ত যারা পৃথিবীতে অমর হয়ে আছেন তাদের কর্মযজ্ঞ এমনটাই ইংগিত দেয়।

একথা সত্য যে, কাংঙ্কিত বস্তু না পাওয়া যন্ত্রণা দায়ক। এই যন্ত্রণাই অপবাদ বা কলংক।  না পওয়ার যন্ত্রণা অনেককে ভাবায়, আবার অনেক কে হীনমান্যতায় ভোগায়। এই ক্ষেত্রে, হীনমান্যতা অসহিষ্ণু-তার জন্ম দেয় আর ভাবনা মানুষকে মহৎ করে। ভাবনার অন্তরালের বিষ্ণু-বিরহ পরমার্থীকতার গোরাক যোগায়।

এই বিষ্ণু-বিরহ পরমার্থীক ভাবনা নজরুল, রবীন্দ্রনাথ, সেক্সপেয়াকে অমর করেছে।  তাদের কর্মযজ্ঞ জাগতিক অবমূল্যায়নের কারনেই প্রশংসিত’। সৃজন সৃষ্টি  কংলক ধারাপদে মহাপ্রাপ্তির পথে বিশুদ্ধ উচ্চারণ।

ইতিহাস বিশ্লেষনে দেখা গেছে, ইসলাম ধর্মে -জগত বিকাশ আদি মাতা হওয়ার কলংকে, খ্রিষ্টানদের জাতি বিকাশ এ্যাবোলিনের অবৈধ প্রেমের কলংকে, হিন্দুদের লীলাকীর্ত্তণ রাধার প্রেম কলংকে আর বৌদ্ধ ধর্মের ধারাপদাবনতি নারী বিদেষের কারণে ।

14
Common Forum / স্বপ্ন আধিঁরা
« on: April 22, 2021, 12:22:38 AM »
স্বপ্নের ছায়াপথ ধরে
হাটঁতে ইচ্ছে করে,
মহাকালের অজানা পথে-
অশারীরিক আস্পদ স্পর্শে ।।

সুনীলভ কল্প মূরলীতে
সাদা মেঘের ভেলাচড়ে,
ধূসর হংস বেশে-
স্বর্গ মত্ত জোড়ে।।

মেঘকালো অন্ধকারে
ছায়াপথের দ্বার ধরে,
কৃষ্ণ গহব্বরের আধিঁরায়-
একাকী নিঃসঙ্গ চয়নে।।

জীবনহীন অনন্ত পথে
চাওয়াহীন পূর্ণতায়
সৃষ্টির আদি ভৌতিকতায়--
সুধাময় অনন্ত স্থীতিতে।।

স্বার্থহীন প্রেম বিলাশে
সৃষ্টি, সৃজনের সাথে,
একাত্ব প্রনয় প্রয়াসে-
আমি তুমি ভালবেসে।।

15


বাঙ্গালী জাতি এক অদৃষ্টবিশ্বাসী পলায়নপর জাতি। বুদ্ধিহীন দৈন্যতা এই জাতিকে ক্রমাগত অধঃ পতনের দিকেই ধাপিত করছে। জাতির যুগযুগান্তরের ইতিহাস; এই সত্যেকেই স্বাক্ষ্য দেয়।

সেই প্রাচীন যুগ থেকে শুরু করে আজ অব্দি জাতির এই দুর্বলতার সুযোগে ক্রমাগত লুট হয়েই চলেছে বাংলার সম্পদ, সংস্কৃতি, ভাষা, জাতীয়তা ও জাতীয় চরিত্র। যুগ যুগ ধরে নিরষ্কুশ ভাবে প্রমানিত হয়েছে শাসক শ্রেনীর ‘ক্ষমতা ও অর্থনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের চক্রান্ত। ফলে স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরেও জাতি তার অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি। এই ব্যর্থতা জাতির জীবনে কলংক।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশ স্বাধীনের পর থেকেই বাংলা ভূ-খন্ডে পালাবদলের রাজনীতি শুরু হয়েছে। যার নেতৃত্ব দিচ্ছে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ। বিগত সময় গুলোতে রাজনৈতিক সরকার গুলো স্বনির্ভর আর স্বচ্ছ গণতন্ত্রের স্লোগান দিয়ে জনগনকে ফুসলিয়ে- ক্ষমতা দখল করে ক্ষত-বিক্ষত করছে ‘গোটা জাতি ও জাতীয় স্বার্থকে। অসীম ক্ষমতায় কুক্ষিগত করছে রাষ্ট্রীয় দখলদারিত্ব।

নির্বাচিত অধিকাংশ নেতারাই জাতীয় স্বার্থের নামে ‘মূলা, ঝুলিয়ে স্ব-দলীয় কিম্বা ব্যক্তি স্বার্থ উদ্ধারে পৃথিবীর নিকৃষ্ঠ ও জঘন্যতম পন্থা অবলম্বনেরও পিছপা হয়নি। সভ্যতার হাজার বছরের ঐতিহাসিক শিক্ষাকে বৃদ্ধ আঙ্গুলি দেখিয়ে কুখ্যাত ইউরোপিয় দানব চতুদর্শ/ ষোড়শ লুইয়ের ন্যায় চিৎকার করে বলছে“ আমিই ধর্ম, আমিই রাষ্ট্র, আমিই আইন,।

একথা সত্য যে, প্রাচীন কালে ‘বাহুবল আর ক্ষমতা- রাজনীতির নিয়ামক ছিল। সভ্যতার এই আধুনিক যুগে রাজনীতির সংজ্ঞার পরিবর্তন ও পরিমার্জন হয়েছে। আধুনিক কালের রাজনীতির সংজ্ঞায় বলা হয়েছে Politic is the public service for national Interest. অথচ বাংলাদেশের রাজনীতি সদা-সর্বদা উল্টু পথেই হাঁটছে।

গোটি কয়েক নেতা ছাড়া দেশের অধিকাংশ রাজনীতিবিদই জনগনের সেবার অন্তরালে হত্যা, লুন্ঠন ও ক্ষমতা কুক্ষিগত করার রাজনীতি নিয়ে ব্যতি-ব্যস্ত। দেশের প্রত্যেক মহল্লা কিম্বা পাড়ার শ্রেষ্ঠ দুস্কৃতিকারী ও বখাটেরা রাজনৈতিক নেতার পরিচয়ে স্ব-স্ব এলাকা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। স্বার্থের কারনে এক নেতা আরেক নেতাকে গুম কিম্বা হত্যা করে লাশ বেওয়ারীশ করে দিচ্ছে। দলীয় ক্ষমতায় মদদপুষ্ট ছাত্ররা শিক্ষাঙ্গনে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে।

পক্ষ-প্রতিপক্ষকে রগ কেঁটে সারা জীবনের জন্য পুঙ্গ করা কিম্বা হত্যা করে লাশ গুম করতেও দ্বিধা করছে না। সত্যের জয় ধ্বনি করায় সত্যনিষ্ট সাংবাদিক সাগর-রুনিদের সন্ত্রসীদের হাতে জীবন দিতে হচ্ছে অবুঝ শিশুকে বোবা কান্না উপহার দিয়ে। বেকারত্বে যাতা কলে পৃষ্ঠ হয়ে সাংবাদিক মিনার মাহমুদদের আত্মহত্যা করে প্রমান করতে হচ্ছে ‘প্রানের চেয়ে মান বড়,।

মৌলবাদীরা ধর্মের নামে ধর্মপ্রান মানুষকে সত্য বলার অধিকারকে সংকুচিত করছে ক্রমাগত । রাজনৈতিক স্বার্থ হাঁসিলে এই বাজী খেলায় ঢোল পিটাচ্ছে অন্ধকারে থাকা আলী বাবার ‘চেরাগদৈত্য’।

আন্তজার্তিক শত্রুরা জাতিগত ঐক্যতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতার ধোঁয়া তুলে ফেলানীদের কাঁটা তারের বেড়ায় ঝুঁলিয়ে নৃসংশ ভাবে হত্যা করছে। রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলে যুগ যুগ ধরে জিয়িয়ে রাখছে অসংখ্য জাতীয় সমস্যাকে।
এক-বিংশ শতাব্দীর রাজনৈতিক নতুন মেরু করনে ক্রমে ক্রমেই বাংলা ভূ-খন্ডটি হয়ে উঠছে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু। সমগ্র বিশ্বের পরা শক্তিগুলো রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সুবিধা লাভে বাংলাদেশের দিকে বিশেষ দৃষ্টিতে ধাবমান রয়েছে।

ইতিমধ্যে পৃথিবীর ধনি রাষ্ট্র আমেরিকা ও পরাশক্তি রাশিয়া ‘নর্থ-আটল্যান্টিক, এলাকা ছেড়ে অধিক অর্থনৈতিক সুবিধা লাভে তীক্ষ্ন নজর দিয়েছে ‘এশিয়া-প্রশান্তমহাসগরীয়, এলাকার দিকে।

পরিসংখ্যান, বিশ্ব জনসংখ্যার ৭০/৮০ ভাগ লোকের বাস ‘এশিয়া-প্রশান্ত-মহাসগরীয়, অঞ্চলটিতে স্বল্প-বিস্তারে চীন ও ভারত অধিক সুবিধা নিলেও বিদ্যূৎ গতিতে ধেঁয়ে আসছে পাশ্চাত্যের দেশগুলো।

পৃথিবীর ষোলতম বৃহৎ বাজার বাংলাদেশ ভুগৌলিক কারনেই ‘এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয়, অঞ্চলের প্রবেশ দ্বার। বাজার ব্যবস্থাপনার দিক থেকে চীন ও আমেরিকার কাছে শ্রেষ্ঠস্থান বাংলাদেশ। ছলে বলে কলে কৌশলে রাজনৈতিক ইস্যুকে অজুহাত করে বার বার বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করছে ভারত।

তাই, একদিকে দেশের অভ্যন্তরে ক্ষমতা দখল নিয়ে ‘রাজনৈতিক দুস্যিপনা, অপর দিকে বহিঃশক্তির অর্থণীতি দখলে লোলুপ দৃষ্টি থেকে, দেশকে বাচঁতে হলে জাতীয় ঐক্য ও সর্ব সাধারনের রাজনৈকি সচেতনতা এই সময়ে একান্তই প্রয়োজন!!!

Pages: [1] 2 3 ... 10