Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Badshah Mamun

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 125
31
Career Guidance / Seek A Career, Not A Job
« on: February 16, 2021, 01:12:31 PM »
Seek A Career, Not A Job


Business education has proliferated in the country with over a thousand independent management schools, apart from more than 900 state universities, that offer similar courses. Similarly, education in the field of commerce is now available in over 20,000 colleges and universities.

Sectors like retail (online and offline), pharma and healthcare, energy (conventional and non-conventional), food and beverages and Micro, Small and Medium Enterprises (MSMEs) hold employment promises.

These sectors are drivers of revival for the global economy that saw a 5 per cent contraction last year from a total size of $80 trillion. The Indian economy, too, suffered a 23 per cent contraction during the year.

A quick survey with the placement offices of a few universities shows the following trends. The top six sectors employing freshers from B-Schools are edutech, logistics and supply chain, banking and insurance, telecommunications, e-commerce or retail, and analytics and consulting.

Among tech enterprises, BYJU’s, Jaro, Toppers and Extramarks are hiring heavily, while DTDC and SafeExpress are the top logistics recruiters. Bank of America, ICICI, Aditya Birla and JR Laddha have been big recruiters in the banking and finance space, along with microfinance organisations.



Reliance Jio takes the cake among telecoms and Amazon, e-kart and Flipkart are leading in the e-commerce segment. AC Nielson and Mphasis are major data and consulting recruiters. We saw 94 per cent of the final placements with a package in the range of `3.5 to `10 lakh per annum. Edutech is seen offering the highest package followed by data analytics and consultancy companies.

On the jobs front, the first lesson to be learnt is that one should seek a career and not just a job. It should be the manifestation of the chosen career at a point in time. Traditionally, business education has been plagued with the following challenges:

1. It is often delivered through face-to-face concepts and theories of management or usual taxation, accounting laws and principles.

2. Business education is delivered by people, who have rarely practised what they are teaching from management books, largely written in the West.

3. It is evaluated through a semester-end or an annual written examination, which is the base of scoring, awarding degrees, and consideration for jobs.

4. It is heavily biased towards jobs in large corporations, indigenous or multi-national corporations, while in reality, the actual engagement is required in MSMEs, small start-ups and entrepreneurial ventures.

The pre-pandemic era has necessitated many changes, which several universities have started adopting. The pandemic has only redefined education. Trends that will match the expectations in the next decade are:

1. Business education will begin with a flipped-classroom model, where students would be provided with multiple resources, including open-source and proprietary resources of the mentors. These could be videos, podcasts, PDFs, book chapters, case studies, info-graphics, interviews, or slideshows.

2. Students are expected to develop asynchronous self-learning muscles and take up doubts and challenges in synchronous sessions, which could be digital or physical, or both ­— PhyGital - in class and online.

3. The third level in business learning could be solving problems, critical thinking exercises with simulated situations to examine comprehension of the subject concerned, and application of the insights.

4. Students could be asked to develop their own case studies based on their areas of interest.

5. After an initiation to overall subject and its practice, the student of management could take up a broad specialisation area which, in the first level, could be marketing, human resources, finance and systems. For commerce students, it could be advanced accounts, taxation, actuarial sciences, or business economics.

6. At masters’ level, the specialisation could be in niche areas. In management, it could be in retail, services, leadership, budget, project, banking and insurance, learning and development, brand, rural or agri-business, data analytics, energy, logistics and supply chain, IT and technology, telecom, entertainment and media, social business, development, pharmaceuticals, strategic management, export-import or sales.

Similarly in commerce, students could go deep into one domain within taxation or accounting.

7. It is also important to know quantitative aspects often neglected in traditional management education, like, econometrics, statistics, quantitative analyses software, big data analytics and IT applications. A couple of courses covering these would be significant.

8. It is important to develop a few case studies of success or failure in the areas of niche specialisation. For a hands-on experience, a couple of life projects and one major full-time internship in the chosen niche area is necessary. Students could have a low-engagement, online internship running along with the academic programme, while managing time, and using the weekends well.

9. Higher emotional intelligence along with the ability to be a team-worker and lead from a remote location, when required, are the basic professional skills and work ethics that are required.

10. Having a minor specialisation in ITeS, brand communication, corporate or cyber law would be an advantage and differentiator in a market full of generalists with plain vanilla BBA or MBA degrees.

Reinvent yourself. Redefine your career goals, restrategise your journey, refocus on specifics, re-learn after much unlearning, and reinvigorate the economy, post-pandemic for taking the right lessons. That’s the mantra in the B-schools of India.

Prof Ujjwal K Chowdhury
Pro-Vice Chancellor
Kolkata-based Adamas University

Source: https://www.outlookindia.com/outlookmoney/magazine/story/seek-a-career-not-a-job-632

32
The Importance Of Technical Optimization For SEO

Search engine optimization (SEO) continues to be an essential part of any digital marketing strategy. As much as we like talking about the newest and latest digital marketing tactics, SEO is a reliable mainstay and will be so for the foreseeable future.

When designing a comprehensive SEO strategy, however, most digital marketers spend their time on several things. Choosing high-ranking keywords to target is obviously an important step. Integrating these into high-quality pieces of content may be your next goal. At the same time, building backlinks is also critical.

All these on-page and off-page SEO strategies are necessary elements. However, technical search engine optimization is equally important to create strong SEO. Focusing on your website architecture and ensuring that Google can properly crawl your website goes a long way in allowing your website to rise in the search rankings.

Why Technical SEO Is Important

There isn’t one overarching plug-in or hack that will help your website have the “perfect” technical SEO. That said, there are a variety of things you can do that, collectively, can significantly improve your technical SEO and put you ahead of the competition.

Why do you want to prioritize technical SEO? Well, because technical SEO is what allows search engines like Google to know that you have a website of high value. This is important because it can prompt the search engines to rank you higher. After all, they primarily want to present users with the best possible results for their chosen keywords, and technical SEO is a way to ensure your website meets the requirements.

If Google prioritized webpages that were slow, nonresponsive or confusing to navigate, Google users would be more likely to take their search queries somewhere else. So if your website loads quickly, has no dead links and is secure, Google’s crawlers will give it an extra boost in search rankings.

The reasons for this are evident. Creating a strong technical foundation for your website will go a long way in satisfying and delighting your users. Search engine crawlers take notice and prioritize your website over others who offer slower and buggier experiences.

Technical SEO: Some Tips And Advice

Technical SEO is definitely something that you should take seriously. So, what are some of the things that you can do to raise your technical SEO? While it would be impossible to list all of them in this article, here are some of the most important things that you can do.

First, make sure that your website is optimized for mobile devices. This is a big one, because more users are now browsing the internet on their smartphones. Google and other search engines, therefore, prioritize websites that offer a great mobile browsing experience. Luckily, search engines like Google have released mobile-friendly tests that can help you optimize your mobile website.

Website speed also plays an important role. To get a basic audit of your website’s current speed, you can use a tool like Pingdom or Google PageSpeed Insights. With that baseline, make sure that you are doing several key things. Think about enabling browser caching, optimizing your website’s images and enabling compression on your site. These are small steps, but put together, they can make your website much faster.

Next, make sure that you include an SSL certificate on your website. SSL (secure sockets layer) certificates provide extra security for visitors to your website. It protects data, confirms identities and improves customer trust. Therefore, by purchasing an SSL certificate, you will not only improve your SEO ranking, but you will add additional security to your website. It’s a no-brainer, so if you haven’t already obtained an SSL certificate, don’t hesitate to do so.

Finally, submit your sitemap to search engines. Sitemaps are essentially lists of pages on your website. They are critical because they let search engines find and index your website. Fortunately, sitemaps aren’t that difficult to create. For instance, if you use WordPress as your content management system, you can easily find a plug-in that will create a sitemap for you. Once your sitemap is ready, submit it to Google Search Console and Bing Webmaster Tools. Doing this makes it easier for these search engines to crawl your website.

Rising Through The Rankings


Technical SEO isn’t going to automatically get you to the top of Google or Bing. That said, ignoring technical SEO will guarantee that doesn’t happen. A slow or buggy website is going to be punished by search engines, thereby preventing you from achieving your digital marketing goals.

Because of this, we encourage you to take technical SEO seriously. Audit your website, and implement some of the suggestions mentioned above. Ultimately, they will go a long way in strengthening your website’s technical SEO.

Source: https://www.forbes.com/sites/deloitte/2021/01/27/what-the-vaccine-wont-solve/?sh=5f44b8ce1ccb

33
Famous people Quote / Re: Quotation by Famous leader
« on: February 16, 2021, 12:19:15 PM »

34
Famous people Quote / Quotation by Famous leader
« on: February 16, 2021, 12:18:59 PM »


35
Politician's Quote / oliticians are the same all over.
« on: February 16, 2021, 12:17:18 PM »

Politicians are the same all over. They promise to build bridges even when there are no rivers.

Nikita Khrushchev

36
Religious Quotation / Religion is the clearest telescope
« on: February 16, 2021, 12:15:26 PM »

Religion is the clearest telescope through which we can behold the beauties of creation, and the good of our Creator.

WILLIAM SCOTT DOWNEY

37
সফল উদ্যোক্তা হতে যেখানে ‘না’ বলতে হবে


নতুন নতুন যখন একটা ব্যবসা শুরু করা যায়, তখন উদ্যোক্তাদের মধ্যে একটা আদর্শ অবস্থা খোঁজার তাড়না থাকে। মনে হয় যেন অনেক কিছু করে ফেলতে হবে, কিন্তু বাছবিচার ছাড়া অনেক কিছু একসঙ্গে করে ফেলার ফল আখেরে খুব ভালো হয় না।

যেসব উদ্যোক্তা জীবনে সফল হন, তাঁরা কাজের বিষয়ে গোছানো হন এবং লক্ষ্যেও একমুখী থাকেন। সফল উদ্যোক্তা হতে হলে কাজের বাহুল্য কমিয়ে ফেলতে হবে। উদ্যোক্তাদের সহায়তাকারী ওয়েবসাইট এন্ট্রাপ্রেনিউর জানিয়েছে, ঠিক কোন কোন জায়গায় ‘না’ বললে উদ্যোগকে বাঁচানো যায় লোকসান থেকে।

১. অতিরিক্ত কর্মী নিয়োগকে না বলুন
উদ্যোক্তাদের একটি সাধারণ ভুল হচ্ছে দ্রুতই অনেক টাকা খরচ করে ফেলেন। তার একটি হচ্ছে আগাম ও অপ্রয়োজনীয় নিয়োগ। হতে পারে একটা সফল উদ্যোগে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কর্মী লাগে। তবে তাঁরা কি একদম প্রথম দিনেই এত কর্মী নিয়োগ দিয়েছিলেন? নতুন উদ্যোগের উচিত প্রত্যেক কর্মীর প্রয়োজনীয়তা যাচাই করা এবং কোনো কাজ যদি একান্তই কোনো পুরোনো কর্মী দ্বারা না হয়, কেবল তখনই নতুন কর্মী নিয়োগ দেওয়া।

নতুন কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া এমনিতেও একটি খরচের খাত। তার ওপরে যদি কর্মী কাজের পরিবেশে মানিয়ে না নিতে পারেন, তবে সেটা শুধু আর্থিক ক্ষতি নয়, অন্য কর্মী এবং উদ্যোক্তার আত্মবিশ্বাসেও খারাপ প্রভাব ফেলে।

২. অতিরিক্ত মিটিংকে না বলুন
ব্যবসায় অর্থের চেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে সময়। একটা ব্যবসাকে সফল করতে কত কাজই না করতে হয়। কিন্তু সারা দিনের সময়সীমা যেহেতু ২৪ ঘণ্টার বেশি নয়, সময়কে বুঝে খরচ করাই ভালো। সফল হতে হলে অপ্রয়োজনীয় মিটিংকে না বলতে হবে। সঙ্গে প্রয়োজনীয় মিটিংয়ের সময়ও বেঁধে ফেলতে হবে, যেন অযথা গল্পে সময় নষ্ট না হয়।

সবচেয়ে ভালো বুদ্ধি হচ্ছে নিজের সারা দিনের কাজের তালিকা করে নিতে হবে। এরপর তালিকা মিলিয়ে কাজ করতে হবে। এভাবে কাজগুলোর অগ্রগতি চোখের সামনে থাকবে আর সময়েরও সর্বোত্তম ব্যবহার হবে।

৩. বহু উদ্যোগ ও বহু কৌশলকে না বলুন
তরুণ ব্যবসায়ীরা একই সঙ্গে অনেক ব্যবসা শুরু করেন। মনে হয় যেন একটা ব্যবসা আরেকটা ব্যবসাকে সহায়তা করবে। কিন্তু বাস্তবে তা হয় না। বরং একসঙ্গে অনেক ব্যবসা উদ্যোক্তার মনঃসংযোগ নষ্ট করে আর কোনোটাতেই ঠিক সফল হওয়া যায় না।
একই কথা নতুন কৌশলের জন্য। অনেক কৌশল শুধু কাজে ব্যাঘাতই করে না, সঙ্গে পয়সা নষ্ট তো আছেই। ফলে সফল হতে হলে বহু উদ্যোগ ও অপ্রয়োজনীয় কৌশলকে না বলতে হবে। যা চাইছেন তার সবই হবে, তবে আস্তে আস্তে। একটার পর একটা অর্জন করে পরে সফল হওয়া যাবে।

© প্রথম আলো

38
Real Estate / ভাড়া বাসায় আর কত
« on: February 15, 2021, 01:56:37 PM »
ভাড়া বাসায় আর কত


‘ভাড়া বাসায় আর কত? ভাড়ার টাকায় শুরু হোক ঋণ শোধ। আর ঋণেই হয়ে যাক নিজের ফ্ল্যাট।’ ঠিক এমনভাবেই রহমান পাশার কাছে আবাসন ঋণের বিপণন করেছিলেন বেসরকারি এক ব্যাংকের খুচরা ঋণ বিভাগের কর্মকর্তা।

এক শিল্প গ্রুপের মধ্যম শ্রেণির কর্মকর্তা রহমান পাশাও এতে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন। নিজের জমানো টাকা ও ব্যাংকঋণে এখন নিজের ফ্ল্যাটে থাকেন। ভাড়ার টাকায় ঋণের কিস্তি শোধ করেন। এটি ২০১৬ সালের ঘটনা। আর এখন তো সুদহার কমায় আবাসন ঋণ আরও সস্তা হয়ে পড়েছে। করোনার কারণে কিছুদিন ফ্ল্যাট বিক্রির গতি কম ছিল। এখন বিক্রি বেড়েছে।

নিজের একটি ফ্ল্যাট হবে, মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে এক বড় স্বপ্ন। তাঁদের এই স্বপ্নপূরণে এখন হাতছানি দিয়ে ডাকছে দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। তারা যেন প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে সুদের হার কমিয়ে গ্রাহকদের দীর্ঘ মেয়াদে আবাসন ঋণ দিতে নেমেছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান গ্রাহকের আবেদন পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ঋণের অনুমোদন দিচ্ছে। অন্যরা নির্দিষ্ট সময়েই ঋণ আবেদন নিষ্পত্তি করছে।

সুদহার সর্বোচ্চ ৯%
বিদায়ী ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে সুদের হার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশে কার্যকর হওয়ার পর থেকে ব্যাংকগুলোর মধ্যে একধরনের প্রতিযোগিতা শুরু হয় সুদ কমানোর। এর ফলে বেশির ভাগ ব্যাংকের দেওয়া ঋণের সুদহার সাড়ে ৭ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে রয়েছে। এরই মধ্যে বেসরকারি খাতের ডাচ্-বাংলা ব্যাংক বড় চমক দেখিয়েছে। ব্যাংকটি এখন সাড়ে ৭ শতাংশ সুদে অন্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আবাসন ঋণের গ্রাহকদের নিজের ব্যাংকে আনছে (ঋণ টেকওভার)। তবে নতুন ঋণ দিচ্ছে ৮ শতাংশ সুদে। ব্যাংকটির ‘ঠিকানা’ নামে আলাদা একটি ঋণ প্রকল্প চালু রয়েছে।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মো. শিরিন এ নিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ‘করোনায় কিছুদিন ঋণচাহিদা ছিল না। এখন ঋণের জন্য ভালো চাহিদাও আসছে। আমরাও ঋণ দিচ্ছি। এ জন্য সুদহারও কমিয়ে দিয়েছি।’

শুধু ডাচ্-বাংলা নয়, এখন সব ব্যাংকই আবাসনের মতো খুচরা ঋণকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে। ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, অন্য ঋণের চেয়ে ফ্ল্যাট কেনার ঋণ বেশি নিরাপদ। কারণ, এই ঋণে খেলাপি কম এবং ঋণ পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত ফ্ল্যাট ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে থাকে। আর সংকটে না পড়লে কেউ ফ্ল্যাটের মালিকানা হারাতে চান না। তাই ব্যাংকগুলো দিন দিন এই ঋণে মনোযোগ বাড়াচ্ছে। আর এখন শিল্প ঋণের চাহিদা না থাকায় ব্যাংকগুলো আবাসনসহ বিভিন্ন খুচরা ঋণে নজর বাড়িয়েছে।

বেড়েছে ঋণের সীমাও
আগে ব্যাংকগুলো ১ কোটি ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত গৃহঋণ দিতে পারত। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ২ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদানের অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো (লিজিং কোম্পানি) আগে থেকেই গ্রাহকের চাহিদামতো ঋণ দিতে পারছে। ঋণ বিতরণের পাশাপাশি ঋণ আদায়ের প্রক্রিয়াটিও আগের চেয়ে অনেক সহজ করেছে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। প্রতিষ্ঠানগুলোই ঋণ দিতে ছুটছে গ্রাহকের দ্বারে দ্বারে।

ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী প্রথম আলোকে বলেন, ‘করোনার কারণে অনেক ফ্ল্যাট বিক্রির উপযোগী হয়েছে। কারণ, বড় একটা সময় ফ্ল্যাট বিক্রি বন্ধ ছিল। এখন সুদহার কমে গেছে। ভালো ঋণ আবেদনও আসছে। আমরাও ঋণ দিচ্ছি। সুদহার সাড়ে ৮ শতাংশ।’

ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বাড়ি নির্মাণ বা ফ্ল্যাট কিনতে চাইলে মোট দামের ৩০ শতাংশ টাকা নিজের থাকতে হয়। অর্থাৎ, এক কোটি টাকার ফ্ল্যাট কিনতে প্রতিষ্ঠানগুলো ৭০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়। বাকি ৩০ লাখ টাকা ক্রেতার নিজের থাকতে হয়। তবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ফ্ল্যাটের দামের পুরোটাই ঋণ হিসেবে দিতে পারে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আবাসন খাতে ঋণ বিতরণে শীর্ষ ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে আইএফআইসি, ডাচ্-বাংলা, প্রাইম, ব্র্যাক, দ্য সিটি, ব্যাংক এশিয়া, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক প্রভৃতি।

২০১৫ সালের আগে আবাসন ঋণের সুদহার ছিল ১৫ শতাংশের বেশি। ওই সময়ে অনেকে ঋণ নিয়ে শোধ করতে পারেননি। এতে আবাসন খাতেও বড় সংকট তৈরি হয়েছিল। অন্যান্য দেশে কম সুদ ও লিজে আবাসন ঋণের ব্যবস্থা থাকলেও বাংলাদেশে এমন কোনো সুযোগ এখনো সৃষ্টি করা হয়নি। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বিভিন্ন আকর্ষণীয় পণ্য তৈরি করে ঋণ দেওয়ার চেষ্টা করছে।

পথ দেখায় আইএফআইসি
দেশে আবাসন ঋণের সুদহার কমিয়ে প্রথম বড় আলোচনায় আসে বেসরকারি খাতের আইএফআইসি ব্যাংক। ২০১৫ সালের শুরুর দিকেও ব্যাংকটি যেখানে গৃহঋণের বিপরীতে ১১ দশমিক ৯৫ শতাংশ সুদ নিত, সেখানে ওই বছরের ডিসেম্বরে তা কমিয়ে ৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ সুদে ঋণ দিতে শুরু করে। তখন ব্যাংক খাতে সুদহার ছিল ১৫ শতাংশের ওপরে। এর ফলে কম সুদে ঋণ বিতরণে সাফল্য আসে। গ্রাহকেরা সবচেয়ে বেশি আবাসন ঋণ নেন আইএফআইসি ব্যাংক থেকে। ব্যাংকটির ‘আমার বাড়ি’ নামে আলাদা একটি পণ্য রয়েছে। এই ব্যাংক বাড়ি নির্মাণে ২ কোটি ও সেমিপাকা ভবন নির্মাণে ৩৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়। আইএফআইসি ব্যাংকের দেখাদেখি অন্যান্য ব্যাংক আর আর্থিক প্রতিষ্ঠানও এই পথে হাঁটতে শুরু করে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আবাসন খাতে ঋণ বিতরণে শীর্ষ ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে আইএফআইসি, ডাচ্-বাংলা, প্রাইম, ব্র্যাক, দ্য সিটি, ব্যাংক এশিয়া, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক প্রভৃতি। আর আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং (ডিবিএইচ), আইডিএলসি, আইপিডিসি, ন্যাশনাল হাউজিং, লংকাবাংলা এগিয়ে আছে। এসব প্রতিষ্ঠানের ঋণের সুদহার এখন সাড়ে ৭ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন (বিএলএফসিএ) চেয়ারম্যান ও আইপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘যাঁদের আয় নিয়মিত ছিল, তাঁদের হাতে টাকা জমে গেছে। কেউ দেশের বাইরে ঘুরতে যেতে পারেননি। তাঁদের অনেকেই ফ্ল্যাট কেনার দিকে ঝুঁকছেন। ২০১৬ ও ১৭ সালে আবাসনে যে ঋণ যেত, এখন তার চেয়ে বেশি ঋণ বিতরণ হচ্ছে। এখন ঢাকায় প্রতিদিন ১০-১২ টি নতুন ঋণ বিতরণ হচ্ছে। এ ছাড়া ছোট বাড়ি নির্মাণে প্রতি মাসে এক শ জনের বেশি গ্রাহককে ঋণ দিচ্ছি।’

ঋণ পাওয়ার যোগ্যতা
ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বেতনভুক্ত, স্ব-নিয়োজিত (সেলফ-এমপ্লয়েড), ব্যবসায়ী এবং বাড়িওয়ালাদের ঋণ দিয়ে থাকে। আবার ব্যক্তিগত বা যৌথ, দুইভাবেই আবেদন করা যায়। ঋণ পাওয়ার জন্য বয়স হতে হবে ২৫ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে। যাঁরা চাকরিজীবী, তাঁদের মাসিক আয় হতে হবে সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা।

ঋণ আবেদনপত্রে সংযুক্ত করতে হবে আবেদনকারী এবং গ্যারান্টারের জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পাসপোর্ট সাইজ ছবি, পরিষেবা বিলের কপি (গ্যাস বিল, টেলিফোন বিল, ওয়াসা বিল) ও অন্যান্য আয়–সংক্রান্ত নথিপত্র।

এ ছাড়া বেতন বা আয়ের এক বছরের ব্যাংক লেনদেন বিবরণী (স্টেটমেন্ট), ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ (ই-টিন) কপি জমা দিতে হবে। বাড়ির নির্মাণ ঋণ হলে জমির মালিকানা–সংক্রান্ত নথিপত্র ও অঙ্গীকারনামা জমা দিতে হবে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ২৫ বছর মেয়াদ পর্যন্ত যেকোনো পরিমাণ হোম ঋণ প্রদান করছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান ডিবিএইচের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাসিমুল বাতেন প্রথম আলোকে বলেন, গত বছরের শেষ চার মাস থেকে ভালো ঋণ যাচ্ছে। আবাসন প্রতিষ্ঠানগুলো ভালো ব্যবসা করেছে। আর সুদহার আগের চেয়ে কম হওয়ায় গ্রাহকদেরও আগ্রহ বেড়েছে। বলা যায়, সব মিলিয়ে আবাসন ঋণ আগের চেয়ে বেশি যাচ্ছে।

নথিপত্র যা লাগবে
ফ্ল্যাট কেনার ঋণের জন্য অবশ্য কাগজপত্র কম লাগে। এ জন্য ফ্ল্যাট ক্রেতা এবং ডেভেলপারের সঙ্গে সম্পাদিত ফ্ল্যাট ক্রয়ে রেজিস্ট্রি করা চুক্তিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি দিতে হবে। এ ছাড়া জমির মালিক ও ডেভেলপারের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, অনুমোদিত নকশা ও অনুমোদনপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি এবং ফ্ল্যাট কেনার রেজিস্ট্রি করা বায়না চুক্তিপত্রের মূল কপি এবং বরাদ্দপত্র লাগবেই।

বাড়ি নির্মাণ ঋণের জন্য প্রথমেই দরকার যথাযথ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদিত নকশার সত্যায়িত ফটোকপি, মূল দলিল, নামজারি খতিয়ান, খাজনা রসিদের সত্যায়িত ফটোকপি। এ ছাড়া লাগবে সিএস, এসএ, আরএস, বিএস খতিয়ানের সত্যায়িত কপি। জেলা বা সাবরেজিস্ট্রারের কার্যালয় থেকে ১২ বছরের তল্লাশিসহ নির্দায় সনদ (এনইসি)। সরকার থেকে বরাদ্দ পাওয়া জমির ক্ষেত্রে মূল বরাদ্দপত্র এবং দখল হস্তান্তরপত্রও লাগবে।

© প্রথম আলো

39
ফ্ল্যাট বা জমি কিনতে ঘুমের বারোটা বাজাবেন না


‘নে বাবা, তোরা এখন নাকে তেল দিয়ে ঘুমা। নো টেনশন।’ আশিয়ান সিটির আলোচিত এই বিজ্ঞাপন দেশে অনেকেরই ঘুম হারাম করেছে। কষ্টের টাকায় প্লট বুকিং দিয়ে আদালতের বারান্দায় বারান্দায় ঘুরে হয়রান হচ্ছেন অনেকেই।

আলোচিত এই প্রকল্প ছাড়া অনেক প্রতিষ্ঠানের প্লট বা ফ্ল্যাট কিনে প্রতারিত হয়েছেন ক্রেতারা। অনেক ক্ষেত্রেই ফ্ল্যাট বা প্লট বুঝে পেতে বছরের পর বছর সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে তাঁদের। তাই প্রতারণার ফাঁদে পা যেন না আটকায়, সে জন্য আগেই ভালোভাবে খোঁজখবর নিন। সবকিছু পরিষ্কার থাকলেই কেবল বিনিয়োগের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে যান। নতুবা শান্তিতে মাথা গোঁজার জন্য যে কাঁড়ি কাড়ি টাকা দিয়ে ফ্ল্যাট বা প্লট কিনবেন, সেটাই একদিন অশান্তির কারণ হয়ে উঠতে পারে।

আবাসন প্রকল্পের জমির দলিলে কোনো ভেজাল আছে কি না এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে কি না, তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, নকশা অনুযায়ী ভবন তৈরি না হলে রাজউক সেই ভবনের অবৈধ অংশ ভেঙে ফেলতে পারে।
ফ্ল্যাট-প্লট কিনতে আপনি কত টাকা বিনিয়োগ করবেন, প্রথমে তার একটি হিসাব কষে ফেলুন। তারপর পছন্দমতো ফ্ল্যাট-প্লট খুঁজুন। ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ঋণ নিয়েও ফ্ল্যাট কিনতে পারেন। এসব প্রতিষ্ঠান দীর্ঘমেয়াদি কিস্তিতে ব্যাংকঋণ দিচ্ছে। এমনকি কোনো কারণে আপনি আয়কর নথিতে কোনো বছরের কিছু আয় দেখাতে ভুলে গেছেন, এখন সেই টাকায় ফ্ল্যাট কিনতে পারবেন। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন করবে না।

টাকার সংস্থানের কথা হলো। এবার নিজের চাহিদা অনুযায়ী এলাকায় খোঁজখবর নিন কোন কোন প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প রয়েছে। তারপর সরেজমিনে ঘুরে দেখুন। দাম–দরের বিষয়ে আশপাশে কিছু প্রকল্পেরও খোঁজ নিন। ভবনের নকশা দেখুন। আবাসন প্রতিষ্ঠানটি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) সদস্য কি না, সেটিও যাচাই করুন।

ব্যাটে-বলে মিললে কাগজপত্র যাচাইয়ে নামুন। বিশেষ করে আবাসন প্রকল্পের জমির দলিলে কোনো ভেজাল আছে কি না এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে কি না, তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, নকশা অনুযায়ী ভবন তৈরি না হলে রাজউক সেই ভবনের অবৈধ অংশ ভেঙে ফেলতে পারে। মনে রাখুন, রাজউকের মতো চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও নিজ নিজ প্লট প্রকল্পের অনুমোদন দিয়ে থাকে।

কোনোভাবেই আবাসন প্রতিষ্ঠানের চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে ফ্ল্যাট কেনায় ঝাঁপ দেবেন না। আবারও বলছি, সতর্ক থাকুন, প্লট প্রকল্পটি রাজউকের ডিটেইল এরিয়া প্ল্যানের (ড্যাপ) বন্যাপ্রবণ অঞ্চলে পড়েছে কি না, জেনে নিন। আবার যে এলাকায় প্রকল্পটি, সেখানে আদৌ তাদের জমি আছে কি না, সেটাও জানুন।

জানতে চাইলে দেশের শীর্ষস্থানীয় আবাসন প্রতিষ্ঠান কনকর্ডের হেড অব ব্র্যান্ড মো. তারিকুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, আবাসন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তির আগে অবশ্যই চুক্তিপত্র ভালোভাবে পড়ে দেখা প্রয়োজন। নিজে না বুঝলে আইনজীবীর পরামর্শও নেওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া ভবন নির্মাণের কোয়ালিটি বা মান বোঝার জন্য কী ধরনের রড, সিমেন্ট ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার করা হবে, সেটিও খোঁজ নেওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ফ্ল্যাট-প্লট কিনতে ক্রেতার অবশ্যই কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) থাকতে হবে। টিআইএন ছাড়া ফ্ল্যাট-জমি নিবন্ধন করা যাবে না। আর সেই টিআইএনের বিপরীতে নিয়মিত বার্ষিক কর বিবরণী জমা দিতে হবে।

ঢাকার আশপাশে অনেকগুলো প্লট প্রকল্প গড়ে উঠছে। ক্রেতাদের ভেড়াতে অনেকেই আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। প্লট প্রকল্পগুলোর মধ্যে অনেকগুলোর অবস্থানই রাজউকের পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পের আশপাশে। এই সরকারি প্রকল্পে ২৫ হাজারের বেশি আবাসিক প্লট থাকলেও নাগরিক সেবা না থাকায় এখনো বাসযোগ্য হয়নি। অথচ প্রকল্পটির বয়স ২৪ বছর। সরকারি প্রকল্পের এই অবস্থা হলে বেসরকারিগুলোর অবস্থান কোথায়, সেটি সত্যি ভাবার বিষয়। তাই প্লট কেনার আগে অনেক হিসাব–নিকাশ করতেই হবে। নতুবা নিজের একটি বাড়ির স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে যাবে।

অনেক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা ভাড়া জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে আশপাশের অনেক জমি নিজেদের বলে দাবি করে। তাই প্রকল্পের অনুমোদন আছে কি না এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নামে আদৌ জমি আছে কি না সেটি যাচাই করতে হবে। অনেক কোম্পানির প্রতিনিধিরা বলেন, তাঁরা উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমতি নিয়ে ব্যবসা করছেন। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যান কখনোই নিয়ন্ত্রক সংস্থা নয়। তারপর দেখতে হবে, প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠানটি রিহ্যাব অথবা বাংলাদেশ ল্যান্ড ডেভেলপারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএলডিএ) সদস্য কি না। আইন অনুযায়ী, সংগঠন দুটির সদস্য না হলে ব্যবসা অবৈধ।

জানতে চাইলে রিহ্যাবের সহসভাপতি সোহেল রানা প্রথম আলোকে বলেন, সরকারের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে অনুমোদিত প্রকল্প ছাড়া প্লট কেনাবেচা করা যাবে না। তবে রাজধানীর আশপাশে যত প্রকল্প আছে, তার মধ্যে অল্পসংখ্যকেরই অনুমোদন রয়েছে। ফ্ল্যাট ও প্লট প্রকল্প কেনার আগে কোম্পানি সম্পর্কে জানতে চাইলে ক্রেতারা রিহ্যাবের কার্যালয়ে খোঁজ নিতে পারেন বলেও জানান তিনি।

Source: © প্রথম আলো

40
SEO (Search Engine Optimization) / What is the importance of technical SEO?
« on: February 13, 2021, 10:57:12 AM »
What is the importance of technical SEO?

Search engine optimization (SEO) continues to be an essential part of any digital marketing strategy. As much as we like talking about the newest and latest digital marketing tactics, SEO is a reliable mainstay and will be so for the foreseeable future.

Why Technical SEO Is Important

There isn’t one overarching plug-in or hack that will help your website have the “perfect” technical SEO. That said, there are a variety of things you can do that, collectively, can significantly improve your technical SEO and put you ahead of the competition.

Why do you want to prioritize technical SEO? Well, because technical SEO is what allows search engines like Google to know that you have a website of high value. This is important because it can prompt the search engines to rank you higher. After all, they primarily want to present users with the best possible results for their chosen keywords, and technical SEO is a way to ensure your website meets the requirements.

If Google prioritized webpages that were slow, nonresponsive or confusing to navigate, Google users would be more likely to take their search queries somewhere else. So if your website loads quickly, has no dead links and is secure, Google’s crawlers will give it an extra boost in search rankings.


41
Agriculture / কৃষিই ভরসার জায়গা
« on: February 09, 2021, 10:51:22 AM »
কৃষিই ভরসার জায়গা

করোনাকালের ভয়ংকর পরিস্থিতির মধ্যেও কৃষির সামগ্রিক উৎপাদন এ কথা আবারো প্রমাণ করল কৃষকরাই বাংলাদেশের নিবেদিতপ্রাণ দেশপ্রেমিক। কেননা, করোনাকালে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক, শ্রমিক, উদ্যোক্তা, ছাত্র-শিক্ষকসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ যখন লকডাউনে ঘরবন্দী, তখনো মাঠে তৎপর ছিলেন বাংলার কৃষকরা। করোনার ঝুঁকি নিয়েও তারা দিনরাত খেটে ফলিয়েছেন সোনার ফসল। বলতে দ্বিধা নেই, কৃষকের সেই অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসলই বাঁচিয়ে রেখেছে ঘরবন্দী ১৭ কোটি মানুষের জীবন। করোনায় সবকিছু স্থবির হয়ে গেলেও কৃষকরাই সচল রেখেছেন দেশের অর্থনীতি। বিভিন্ন বিশ্লেষণ বলছে, সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি যেসব ব্যক্তি বা সংগঠন করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরবন্দী মানুষকে খাদ্যসহায়তা দিয়েছে, তার অধিকাংশই ছিল কৃষিপণ্য। করোনাকালে লকডাউনে পরিবহন, হাটবাজার সবকিছু ছিল বন্ধ আর ক্রেতারা গৃহবন্দী থাকায় কৃষকরা উৎপাদিত পণ্য কম দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন। অনেক ফসল নষ্ট হয়েছে। করোনার ক্ষতির মধ্যে এসেছে বন্যার দীর্ঘস্থায়িত্ব। কিন্তু তারপরও কৃষকরা দমে যাননি। নিবিষ্ট মনে বাংলার কৃষকরা উৎপাদনে নেমেছেন ফসলের মাঠে। তাই এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায়, করোনাকালে বাংলাদেশের কৃষি খাতের এই অবদান আবারও মনে করিয়েছে, ‘কৃষিই আসল ভরসা’ ।


আসল ভরসা কৃষি

কৃষির অন্যতম সাফল্য হলো, দেশে ধান উৎপাদনে এসেছে বিপ্লব। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময় থেকে এ পর্যন্ত ধানের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় চার গুণ। আমরা জানি, বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতি দাঁড়িয়ে আছে কৃষি, তৈরি পোশাকশিল্প এবং রেমিটেন্সের ওপর। এর মধ্যে তৈরি পোশাক ও রেমিটেন্স ওঠানামা করে। তবে কৃষি অনেকটাই স্থায়ী পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। কারণ হিসেবে দেখা গেছে, নানা রকম প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর আবহাওয়ার প্রতিকূলতা সত্ত্বেও কৃষি কোনো না কোনোভাবে উৎপাদনের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারছে। বিভিন্ন গবেষণার তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, কৃষিক্ষেত্রে বাংলাদেশ দীর্ঘ বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে প্রকৃতি ও জনসংখ্যার সঙ্গে সমন্বয় রাখতে ক্রমাগতভাবে যুদ্ধ করে এগিয়ে চলেছে। আমরা দেখতে পাচ্ছি, স্বাধীনতার আগে দেশে সাড়ে সাত কোটি মানুষের খাদ্য উৎপাদন চাহিদায় হিমশিম খেতে হতো, অথচ স্বাধীনতার চার দশক পর ১৭ কোটি মানুষের খাদ্যের চাহিদা মেটাতে সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে বাংলাদেশের কৃষিব্যবস্থা। উন্নয়ন গবেষণা সংস্থা ডেভরেসোন্যান্সলির গবেষণায় দেখানো হয়েছে, কৃষকরা তাদের কৃষিজমিতে ধানসহ অন্যান্য ফসলও ফলিয়ে থাকেন। জমিতে কোনো না কোনো সবজির চাষ করেন ৭৮ শতাংশ কৃষক। ২৬ শতাংশ কৃষক জমিতে পাট চাষ করেন। ১২ শতাংশ কৃষক জমিতে মাছের চাষ করেন, প্রায় সমসংখ্যক কৃষক সরিষা, ডাল এবং রসুন উৎপাদন করেন। বাদাম এবং সয়াবিন উৎপাদন করেন ১০ শতাংশ কৃষক। ভুট্টা চাষ করেন ৫ শতাংশ কৃষক। আম চাষ করেন ৪ শতাংশ কৃষক। পেঁয়াজ চাষ করেন ৪ শতাংশ কৃষক। তিল চাষ করেন ৩ শতাংশ কৃষক। পান উৎপাদন করেন ৩ শতাংশ কৃষক। এ ছাড়া কিছুসংখ্যক কৃষক তাদের জমিতে অন্যান্য ফল ও ফুলেরও চাষ করেন। তবে ১২ শতাংশ কৃষক ধান ছাড়া অন্য কোনো কৃষিকাজে তাদের জমি ব্যবহার করেন না। করোনাকালের মহাবিপর্যয়ের মধ্যে মার্কিন কৃষি বিভাগ (ইউএসডিএ) পূর্বাভাসে বাংলাদেশের জন্য একটি আশার বাণী শুনিয়েছে। ধারাবাহিকভাবে ধান উৎপাদন বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ তৃতীয় বৃহত্তম ধান উৎপাদনকারী দেশ হতে যাচ্ছে। এত দিন চীন ও ভারতের পরই তৃতীয় স্থানে ছিল ইন্দোনেশিয়া। খাদ্যশস্য উৎপাদনের হিসাব অনুযায়ী এখনো ধান চাষে গ্রামবাংলার ৪৮ শতাংশ মানুষের কর্মসংস্থান হয়। বাংলাদেশের জিডিপিতে কৃষি খাতের যে অংশগ্রহণ, তার অর্ধেক এবং জাতীয় আয়ের ৬ ভাগের ১ ভাগ আসে ধান থেকে। দেশের ১ কোটি ৩০ লাখ পরিবার প্রতিবছর ১ কোটি ৫ লাখ হেক্টর একর জমিতে ধান চাষ করছে।

কৃষিই চালিকাশক্তি

কৃষি উৎপাদন বাড়িয়ে খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করায় বাংলাদেশের সাফল্যকে বিশ্বের জন্য উদাহরণ হিসেবে প্রচার করছে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো। পরিসংখ্যান বলছে, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষির আনুপাতিক অবদান কমলেও মোট কৃষি উৎপাদন বাড়ছে। কৃষিতে উন্নত প্রযুক্তি, বীজ, সার এবং যন্ত্রের ব্যবহার উত্পাদন বাড়ার পেছনে প্রধান কারণ। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে উচ্চফলনশীল জাতের বীজ এবং পরিবেশ-সহিষ্ণু বিভিন্ন ফসল। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বহুলাংশে কৃষি খাতের উন্নয়নের ওপর নির্ভরশীল। আশার খবরটি হচ্ছে, কৃষিবান্ধব নীতি প্রণয়ন ও সময়োপযোগী বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার নিশ্চিতের পদক্ষেপ গ্রহণ করায় দেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে রেকর্ডের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে একই জমিতে বছরে একাধিক ফসল চাষের দিক থেকেও বিশ্বে পথিকৃৎ বাংলাদেশ।

প্রধান খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়ানোর ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশ। কেবল উৎপাদন বৃদ্ধিই নয়, হেক্টরপ্রতি ধান উৎপাদনের দিক থেকেও অধিকাংশ দেশকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। বাংলার কৃষকরা এখানেই থেমে যাননি। একই জমিতে বছরে একাধিক ফসল চাষের দিক থেকেও বাংলাদেশ এখন বিশ্বের জন্য উদাহরণ। জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষিজমি কমতে থাকাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ। ধান, গম ও ভুট্টা বিশ্বের গড় উৎপাদনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। সবজি উৎপাদনে তৃতীয় আর মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে। বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও দুর্যোগসহিষ্ণু শস্যের জাত উদ্ভাবনেও শীর্ষে বাংলাদেশের নাম। আমন, আউশ ও বোরো ধানের বাম্পার ফলনে বছরে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টন খাদ্যশস্য উৎপাদনের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। ৮৫ লাখ টন আলু উৎপাদনের মাধ্যমে বাংলাদেশ শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায়। সাড়ে ১০ লাখ টন আম উৎপাদনের মাধ্যমে বিশ্বে নবম স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ। হেক্টরপ্রতি ভুট্টা উৎপাদনে বৈশ্বিক গড় ৫ দশমিক ১২ টন। বাংলাদেশে এ হার ৬ দশমিক ৯৮ টন। বাংলাদেশ এখন চাল, আলু ও ভুট্টা রপ্তানি করছে।

করোনায় কৃষকের ক্ষতি

করোনার লকডাউনের ফলে কৃষিপণ্যের উৎপাদন, ফসল সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধানের ক্ষেত্রে করোনার প্রভাব খুব বেশি না থাকলেও কৃষির অন্য ক্ষেত্র যেমন: সবজি, ফল, ফুল, মাছ, গবাদিপশু, পাখি ইত্যাদি চাষাবাদ বা পালনে করেনাকালের প্রভাব লক্ষণীয়। ডেভরেসোন্যান্সলির গবেষণায় ৯০ শতাংশ কৃষক বলেছেন, করোনার কারণে তাদের কৃষি ক্ষতির মুখে পড়েছে। ৭৮ শতাংশ কৃষক তাদের উৎপাদিত সবজি, মাছ, দুধ, ডিম, এমনকি পোলট্রি বাজারজাত করতে সমস্যায় পড়েছেন। পরিবহন ও হাটবাজার সীমিত হওয়ায় খুব কমই বাজারে নিতে পারছেন। ৩৮ শতাংশ কৃষক বলেছেন, বাজারে যতটুকু কৃষিপণ্য যাচ্ছে, তার সঠিক দামও পাচ্ছেন না; এমনকি বিক্রিও হচ্ছে না। বেগুন, শসা, শিম ও আলুর মতো সবজি বিক্রিতে কৃষককে সবচেয়ে বেশি লোকসান গুনতে হয়েছে। এ গবেষণায় করোনার কারণে কৃষকের পরিবারপ্রতি আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৯ হাজার ৮৫৩ টাকা, যা তাদের পরিবারের বার্ষিক আয়ের ১০ দশমিক ৫ শতাংশ । এ ছাড়া সম্ভাব্য ক্ষতির ক্ষেত্রসমূহ বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, বাজার এবং পণ্য সরবরাহ বা যোগাযোগব্যবস্থা পূর্ণরূপে সচল হতে যদি আরো ৩-৪ মাস সময় লাগে, তাহলে শুধু কৃষি খাতে পরিবারপ্রতি সম্ভাব্য ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে গড়ে ৭৩ হাজার ১০০ টাকা, যা তাদের পরিবারের বার্ষিক আয়ের ৩৯ শতাংশ ।

শীর্ষত্বের লড়াইয়ে বাংলাদেশের কৃষি


কৃষি খাতে আমাদের অকল্পনীয় উন্নতি সাধিত হয়েছে। কৃষি এখন শুধু ফসলের মাঠে নয়; মৎস্য, গবাদিপশু পালন, সবজি ও ফলের বাণিজ্যিক চাষাবাদ থেকে শুরু করে ব্যতিক্রম এবং নতুন নতুন কৃষিজ বিষয়ে ব্যাপক আগ্রহ ও সাফল্য দেশের সামগ্রিক কৃষি উন্নয়নে আশার আলো দেখাচ্ছে। ছাদকৃষিতেও ব্যাপক সাফল্য, আগ্রহ ও জনপ্রিয়তা আশাব্যঞ্জক। ফসলের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের সফলতাও বাড়ছে। ১৯৭০ সাল থেকে দেশি জাতকে উন্নত করে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা উচ্চফলনশীল (উফশী) জাত উদ্ভাবনের পথে যাত্রা করেন। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি), বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা), বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বারি), বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএসআরআই), বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) কৃষিজ জাত উদ্ভাবনে ক্রমাগতভাবে সফলতা দেখিয়ে যাচ্ছে । বিশ্বে প্রথমবারের মতো জিঙ্কসমৃদ্ধ ধানের জাত উদ্ভাবন করেন বাংলাদেশের কৃষি গবেষকরা। উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে এতগুলো প্রতিকূল পরিবেশসহিষ্ণু ধানের জাত উদ্ভাবনের দিক থেকেও বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষে। কৃষিতে উন্নত প্রযুক্তি, বীজ, সার এবং যন্ত্রের ব্যবহার উৎপাদন বাড়ার পেছনে প্রধান উজ্জীবক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। তার সঙ্গে বিশেষ অবদান রয়েছে আমাদের কৃষিবিজ্ঞানীদের অক্লান্ত পরিশ্রম আর নিবিষ্ট গবেষণায় উচ্চফলনশীল, কম সময়ে ঘরে তোলা যায় এমন জাত ও পরিবেশসহিষ্ণু নতুন জাত উদ্ভাবন। ধান, পাটের পাশাপাশি খাদ্যশস্য, শাকসবজি, রকমারি ফল, সমুদ্র ও মিঠাপানির মাছ, গবাদিপশু, পোলট্রি মাংস ও ডিম, উন্নত জাতের হাঁস-মুরগি, দুগ্ধ উৎপাদন অনেক বেড়েছে। অনেক ক্ষেত্রে বিশ্ব উৎপাদন তালিকায় শীর্ষত্বের লড়াই করছে বাংলাদেশের কৃষি।
 

লেখক: কৃষি ও শিল্প-অর্থনীতি বিশ্লেষক

Source: https://www.sarakhon.com/16320/%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%B7%E0%A6%BF%E0%A6%87-%E0%A6%AD%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A6%97%E0%A6%BE

42
সাক্ষাৎকারে হলে ভুল, গুনতে হবে মাশুল


এ দেশে একটি চাকরিকে প্রায় সময়ই সোনার হরিণের সঙ্গে তুলনা করা হয়। বাস্তব জীবনে সত্যি সত্যি সোনার হরিণের খোঁজ কেউ পায়নি। কিন্তু সোনার হরিণরূপী চাকরির নাগাল পাওয়া যায়। তবে চাকরি পাওয়ার আগে বেশ কিছু ধাপ পেরিয়ে আসতে হয়। এর মধ্যে প্রধানতম হলো ইন্টারভিউ বা সাক্ষাৎকার। এ ক্ষেত্রে যেসব ভুল একদমই করা যাবে না, সেগুলো সম্পর্কে আসুন জেনে নেওয়া যাক:

লিখেছেন অর্ণব সান্যাল


১. শুরুতে নয় দেরি
চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের কিছু সময় আগেই সাক্ষাৎকার গ্রহণের জায়গায় পৌঁছে যাওয়া উচিত। অন্তত ১৫–২০ মিনিট আগে সেখানে থাকলে ভালো। রাস্তায় যানজট থাকাটা অস্বাভাবিক নয়। তাই সেই প্রস্তুতি মাথায় নিয়েই বের হতে হবে। তা ছাড়া নতুন জায়গার সঙ্গে নিজের মনকে মানিয়ে নেওয়ারও একটি বিষয় আছে। অনেকে সাক্ষাৎকার শুরুর সময় বেশ উদ্বিগ্ন থাকেন। কিছু ক্ষেত্রে হয়তো অনেকে হড়বড় করে কথা বলতে থাকেন। কেউ আবার হারিয়ে ফেলেন উপযুক্ত শব্দ, কথায় আটকে যান বারবার। তাই সাক্ষাৎকার দেওয়ার কিছু আগে গিয়ে নিজের মনকে শান্ত ও সাক্ষাৎকারের উপযোগী করে গড়ে তোলা প্রয়োজন। মনে রাখতে হবে, সাক্ষাৎকার শুরুর সময়টায় কিছুতেই খেই হারিয়ে ফেলা চলবে না।

২. বেশভূষায় যত্ন নিন
সাক্ষাৎকারে অবশ্যই ফিটফাট হয়ে যেতে হবে। সেটি শুধু পোশাকেই নয়। আপনি হয়তো পরিপাটি জামাকাপড় পরেই গেলেন, কিন্তু আপনার শরীরী ভাষা ছিল ক্লান্ত। সে ক্ষেত্রে সাক্ষাৎকার গ্রহীতা তা কখনোই ইতিবাচকভাবে নেবেন না। মনে রাখবেন, ফ্যাশন শোর মতো জমকালো পোশাকে সাক্ষাৎকার দিতে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। পরতে হবে রুচিশীল ও ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মানানসই পোশাক। একই সঙ্গে শরীরী ভাষাতেও আপনাকে তরতাজা দেখাতে হবে, হতে হবে প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর।

৩. যেকোনো চাকরি চান?
একটি নির্দিষ্ট পদের জন্যই সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়ে থাকে। কেউ কেউ আছেন, যাঁরা যেকোনো মূল্যে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি চান। তাই সাক্ষাৎকারেও তাঁরা বলে ফেলেন, ‘আমি যেকোনো পদেই চাকরি করতে প্রস্তুত।’ কিন্তু এই মনোভাব চাকরিদাতাদের সামনে উপস্থাপন না করাই শ্রেয়। একটি প্রতিষ্ঠান তার প্রয়োজনেই একটি নির্দিষ্ট পদে কর্মী নিতে চায়। সুতরাং সেই পদের জন্য নিজেকে যোগ্য প্রমাণ করাটাই মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। এর বদলে যদি শোনান যে একটি চাকরি হলেই চলবে, তবে তা চাকরিদাতারা ভালো দৃষ্টিতে দেখবেন না। কারণ ওই নির্দিষ্ট পদের জন্য উপযুক্ত লোকই তাঁদের দরকার।

৪. হতে হবে আত্মবিশ্বাসী
আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি থাকলে সাক্ষাৎকার বোর্ড থেকে ফিরতে হবে খালি হাতেই। নিজেকে যেন ক্লান্ত-বিধ্বস্ত বা অপ্রস্তুত মনে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। নিজের মধ্যে একটি চনমনে ভাব নিয়ে আসতে হবে। সাক্ষাৎকার গ্রহীতাদের করা প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে স্পষ্টভাবে। একটি উত্তরের ব্যাখ্যাও চাইতে পারেন চাকরিদাতা। তাই এর জন্যও নিজেকে প্রস্তুত রাখতে হবে। কথা বলার সময় হাত বেশি না নাড়ানোই ভালো। বরং ধীরস্থিরভাবে সাক্ষাৎকার মোকাবিলা করতে হবে। মনে রাখবেন, হারার আগেই হেরে যাওয়ার কোনো মানে নেই। এই বিশ্বাস রাখতে হবে মনে।

৫. শুধু নিজেকে গুরুত্ব দিলে বিপদ
সব ধরনের সাক্ষাৎকারেই চাকরিপ্রার্থীদের তাদের নিজেদের সম্পর্কে কিছু বলতে বলা হয়। কীভাবে ওই নির্দিষ্ট পদে ভূমিকা রাখবেন—এমন প্রশ্নও করা হয়। খেয়াল রাখতে হবে, এসবের উত্তর যেন ‘আমিময়’ হয়ে না যায়। হয়তো বললেন, প্রতিষ্ঠান থেকে আপনি শিখতে চান, প্রশিক্ষিত হতে চান ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু প্রতিষ্ঠান তো শুধু আপনাকে শেখানোর জন্য বেতন দেবে না, তাই না? কর্মস্থলে নিত্যনতুন বিষয় শেখা, প্রশিক্ষণ পাওয়া বেশ স্বাভাবিক বিষয়। প্রতিষ্ঠানের নিয়মেই একজন নতুন কর্মী এগুলো পাবেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠানে আপনি কীভাবে অবদান রাখতে চান, সেই বিষয়টি না জানতে পারলে চাকরিটা দেবে কীভাবে? সুতরাং কথা বলার সময় প্রতিষ্ঠানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এতে চাকরিদাতা শুরুতেই আপনার পরিকল্পনা সম্পর্কে কিছুটা আঁচ করতে পারবেন।

৬. কোনো প্রশ্ন নেই?
সাক্ষাৎকারের শেষে নিয়োগকর্তা হয়তো বলে বসলেন, ‘আপনার কি জিজ্ঞাসা আছে?’ সাক্ষাৎকারও একধরনের আলাপচারিতা। আলোচনায় কিন্তু দুই পক্ষকেই সমানভাবে অংশ নিতে হয়। তাই নিয়োগকর্তার প্রশ্নের উত্তরে যদি বলে বসেন ‘কোনো প্রশ্ন নেই’, তবে তা কোনো ভালো উদাহরণ সৃষ্টি করবে না। এতে নিয়োগকর্তারা এ–ও ভেবে বসতে পারেন যে আপনার হয়তো এই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করায় আগ্রহ নেই, তাই কিছুই জানতে চান না। সুতরাং কিছু প্রশ্ন আগে থেকেই তৈরি করে রাখুন। যেমন ‘এই পদে কেমন সফলতা পাওয়া যেতে পারে?’ বা ‘এখানকার কর্মসংস্কৃতি কেমন?’ প্রভৃতি। এতে করে ওই প্রতিষ্ঠানে চাকরি পেতে নিজের আগ্রহ অন্তত প্রকাশ পাবে।

৭. সব সাক্ষাৎকারেই সমান গুরুত্ব
সাক্ষাৎকার নানা ধরনের হতে পারে। সরাসরি একক সাক্ষাৎকার, প্যানেল সাক্ষাৎকার, অনানুষ্ঠানিক সাক্ষাৎকার বা গ্রুপ ইন্টারভিউ—যেটাই হোক না কেন, সমান গুরুত্বের সঙ্গে প্রস্তুতি নিতে হবে। কিছু ক্ষেত্রে নিতে হবে বিশেষ প্রস্তুতিও। যেমন টেলিফোনে বা ভিডিওতে সাক্ষাৎকার দেওয়ার ক্ষেত্রে অপেক্ষাকৃত নীরব স্থান বেছে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। ভিডিও কনফারেন্সে সাক্ষাৎকার দেওয়ার ক্ষেত্রে সাক্ষাৎকার শুরুর আগেই নিজের কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের সংযোগ পরীক্ষা করে নিতে হবে। ভিডিও সাক্ষাৎকারেও কিন্তু শরীরী ভাষা ও অভিব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব বিষয়ে হেলাফেলা করলে চলবে না।

তথ্যসূত্র: ফোর্বস ও সিএনবিসি

© প্রথম আলো

43
Online Money Earning / Re: How can we earn through websites?
« on: February 01, 2021, 11:48:19 AM »
FAQs about making money blogging with WordPress?

At WPBeginner, we have helped thousands of beginners start their blogging journey. We have heard almost every question you can think of. Here are the top questions beginners ask us about making money online by blogging.

1. Which one of these proven ways is right for me?

Depends on what you are passionate about and which method would work best with your blog’s topics.

For example, if you run a blog about photography, then affiliate marketing, advertisements, and paid memberships may all work well for your blog.

Focus on offering useful, quality content, that users will find helpful and money will follow. Or as the saying goes, do what you love and the money will follow.

2. How much money can I make from blogging?

It really depends on how much effort you put in and the time you are willing to invest. To be honest, many beginner bloggers lose interest and give up quickly.

You will be making money based on how much traffic you get, the monetization methods you use, and the work you put in. Many successful bloggers make six and even seven figure incomes.

3. How long would it take before I start making some serious money from blogging?

Making money online is not a ‘get-rich-quick’ scam. Anyone telling you otherwise is probably trying to scam you. If you want to make money by starting a blog, then you will have to work hard and invest a lot of your time into it.

There is no easy way to tell you how soon you would start making money. Some bloggers start making small amounts soon after starting their blogs. Others struggle to get their blogs to take off.

However, those who continuously work and stick to a planned strategy are the ones most likely to see encouraging results very early on.

4. How do I get started?

Getting started with your own WordPress blog is easy. However, make sure that you are using the right platform.

Basically, there are two types of WordPress available. WordPress.com: Create a Free Website or Blog which is a hosted solution, and Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress, also known as self-hosted WordPress.

We recommend using Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress because it will allow you to start making money without any limitations. For more details, see our comparison of WordPress.com vs WordPress.org.

You will need a domain name and a web hosting account to start blogging with Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress. Normally, a domain costs $14.99 per year and web hosting $7.99 per month usually paid for a full year.

This is a lot of money if you are just starting a new blog.


44
Online Money Earning / Re: How can we earn through websites?
« on: February 01, 2021, 11:47:09 AM »
Wordpress is the most popular CMS, but there are also other ways you can monetize your blog content. Here are a few methods that work:

1. Make Money With Affiliate Marketing
Affiliate marketing is when you recommend a product or service to your audience using special tracking links, and then get a referral commission for every time someone buys after clicking your link.

A real-life example of affiliate marketing would be when you help a friend open a bank account at your bank branch. Usually, they give you a gift card or a bonus of some sort.

Similar to that many products and services online have affiliate programs that you can join. There are affiliate programs available for every industry (niche).

If you’re interested in getting started with affiliate marketing, you can start by thinking about the products you already use that your readers may be interested in as well. Then you can see if they have an affiliate program that you can sign up for.

Once you have selected the products to promote, then you can use a WordPress plugin like PrettyLinks to manage your affiliate links.

It allows you to quickly insert links into posts, create branded links, auto-replace keywords into links, and even see how each link is performing on your site.

Affiliate marketing is the easiest way to make money because you can promote a wide-variety of products. Just about every popular store like Walmart, BestBuy, Amazon, and others have an affiliate program.

2. Display Google AdSense on WordPress

Google Adsense is an easy way to make money from your blog. All you need to do is add a script from Google to your website and start displaying ads.

You will get paid for every time a user clicks on the ad. These are called CPC ads.

What is CPC? CPC stands for “cost per click.” By displaying CPC ads with Google Adsense, you receive a set fee every time a visitor clicks on an ad.

The cost per click is set by the advertiser. (This is in contrast to CPM ads, where you’re paid for ad views instead of clicks. CPM means “cost per thousand impressions,” where M is the roman numeral for 1,000.)

Google Adsense is a good way to start earning money online when you are first starting out.

You can see our guide on how to monetize a WordPress blog with Google AdSense to get started, and this tutorial on how to optimize your AdSense revenue for more tips.

Looking for a Google AdSense alternative? Try Media.net. They also have a large pool of advertisers, and their payouts are good.

3. Use a WordPress Advertising Plugin to Sell Ads Directly


Google AdSense is easy to set up, but the amount of money you can earn is limited. Each ad click earning will vary.

Directly selling banner ad space on your website can be more lucrative. Instead of having to rely on an intermediary who takes a cut of the money, you negotiate the price and terms on your own.

Above we mentioned the difference between CPC and CPM ads, where you are paid per click or per thousand views. While you could use one of those models for selling banner ads, most bloggers charge a flat rate instead. Charging a flat rate is easier than keeping track of views or clicks.

Still, directly selling ads takes more work to manage than using Google AdSense. Instead of just adding a bit of code to your website, you’ll have to negotiate the pricing, come up with an agreement and terms, and take care of administrative work like invoicing.

However, using a WordPress ad management plugin can make the process easier. We recommend using AdSanity, it allows you to manage Google AdSense as well as your own ads.

To learn more, see our guide on how to sell ads on your WordPress blog.

4. Sell Sponsored Blog Posts

Some bloggers aren’t interested in displaying ads to their audience and wonder how to monetize a blog without ads.

With ad networks, you lose some control over the content displayed on your site. Some readers will get annoyed or offended by ads, and more and more people are using ad blockers which affects your earning potential.

An alternative way to monetize a blog is through sponsorships.

A sponsorship works just like it does in sports, TV shows, or other industries. Basically, a company pays you to represent their product, talk about it, and promote it to your readers.

To get started, it’s a good idea to put together a one-page media kit that details your traffic stats, social media following, audience demographics, and any other data that will make your site more appealing to advertisers. Then, you can approach companies to negotiate a sponsorship deal.

When publishing sponsored posts, it’s crucial to know about the laws in your area about disclosure.

For example, in the United States, a blogger who publishes a sponsored post must comply with the FTC’s Endorsement Guides. This includes disclosing whenever a post is sponsored. You can do that by adding a sponsored post prefix to your post title in WordPress.

5. Get Paid to Write Reviews


Similar to sponsored posts, you can also make money by writing paid reviews on your site.

This is a slightly different monetization method than a review site with affiliate links, as mentioned above.

Instead, you get to try out products related to your niche for free, and even get paid for writing a review.

The process for doing this can be similar to getting sponsored posts. You’ll want to review products that are relevant to your niche, that your audience would be interested in.

You can approach companies on your own to ask about doing paid reviews. There are also websites like PayPerPost that can help to connect you with businesses who may be interested.

6. Earn Money Online by Flipping Websites


If you know how to build a WordPress website, then you’re way ahead of most people. Sometimes entrepreneurs like to buy already established websites that they can use for their own businesses.

If you can build a WordPress blog and start getting traffic to it, then you can sell it and make money for your efforts.

This requires knowing the type of websites in demand, and how to price and sell them. There are websites like Flippa that serve as auction sites and brokers for selling websites.

7. Get Public Speaking Gigs as an Influencer


If you are promoting your own brand along with your blog, then over time you will get a decent following establishing you as an influencer in your space.

You can utilize this recognition to get some public speaking jobs. Many bloggers make a lot of money by speaking at conferences.

Speaking at events whether you are paid or not helps you promote your blog and your personal brand. If you are good at networking and public speaking, then you would be able to find lots of new opportunities on the way.

Here are some general tips you need to keep in mind if you want to make money as a paid public speaker.

Be an expert in your field. If you don’t have enough knowledge/skills at the moment, then start learning right away.
Be consistent – You need to continuously promote your expertise on the topic through your blogging and social media activities.
Let people know that you are available. You can announce on social media or privately reach out to event organizers.
You may not find paid public speaking gigs right away. Many successful speakers start their public speaking career from smaller, more casual, and free community events and meetups.
Create a Paid Membership Website


If you’re not interested in selling ads or sponsored posts, there are plenty of other ways you can earn money online from your blog. A popular method is by having your audience pay to access certain content or areas of your site. Here are a couple of ways to do that.

8. Create Restricted Members Only Content

Your most loyal readers are huge fans and may be willing to pay to read more of your work. You can create a members-only area for them to share more in-depth blog posts, downloads, videos, audio content, and more.

Membership sites can be a big time investment since you must continually create premium content for your paying members. But they can be very lucrative because they are recurring revenue (subscriptions).

You can easily create a membership site using a WordPress membership plugin. We recommend using MemberPress, it is the most beginner friendly and robust membership plugin for WordPress.

We have a complete guide on making a WordPress membership website with step by step instructions to help you get started.

9. Create a Private Forum

Another option for creating a paid membership site is to create private forums that users must pay to get access to. Forums are a great way for your audience to get one-on-one advice from you. Other members of the community can also interact and help each other out.

While moderating a forum can be a lot of work, a paid forum is a great way to earn recurring revenue from your WordPress site.

To get started, you’ll need to set up a forum on your site. Here are our recommended top 5 best forum plugins for WordPress.

10. Create a questions and answers community


Question and answers communities like Stack Exchange and Quora are huge. They help you build an online community that is driven, motivated, and highly engaged.

Just like forums, you will have to spend some time building a sizable community. After that, you will be able to monetize user-generated content on your website using advertisements, affiliate ads, and other methods.

Popular question and answer websites are able to get direct advertisement and sponsorship deals from advertisers in their industry. This helps them negotiate a much higher rate and extra perks.

Create a Directory Website With WordPress


Another option for making money online with WordPress is to create a directory or listing website. You can then charge visitors to advertise their listings on your site.

Here are a few different directory ideas to get you started.

11. Create a Paid Business Directory

Web directories may make you think of the early days of the web before bots started indexing everything automatically, but they’re not completely obsolete.

Generic web directories are no longer necessary, but local or niche directories can be extremely useful.

Directories might gather reviews of local businesses, share the best podcasts on a given topic, or list the best products in a certain niche.

You can easily create a web directory in WordPress following our tutorial. There are also plenty of directory plugins for WordPress you can choose from, many of which allow you to accept payments with submissions.

12. Create a WordPress Job Board With Paid Submissions

Another option is to create a paid job board. Companies who want to advertise an open position to your audience can pay you to submit a listing.

It’s easier to create a successful job board if you narrow down to a specific niche. That way you can become the go-to site for anyone looking for a job in that industry, with minimal competition.

This works great for established blogs in a narrow niche. For example, ProBlogger is now famous for their job board for professional bloggers.

With WordPress, creating a paid job board is easy. See our tutorial on how to create a job board in WordPress with WP Job Manager for a step-by-step walkthrough. You can use the WooCommerce Paid Listings addon to charge for job post submissions.


13. Create a WordPress Event Calendar With Paid Submissions

Instead of a job board, you could create an event calendar where you charge people to advertise their events. This also works well if you already have an established audience, because businesses will be willing to pay to reach your audience.

A paid event calendar is a good monetization method for local or industry-specific websites. You might choose to advertise events in your local city, conferences in a certain industry, or even webinars or live streaming events.

To set this up on your site, see our guide on the best WordPress event calendar plugins.

Sell Digital Products With WordPress

If you’re looking for a more low-maintenance way to make money online blogging with WordPress, then selling your own digital products may be a good choice. While you do have to invest the time to create the product up front, after it’s created your work is very minimal.

Here are a few digital products you can create and sell on your website.

14. Sell Ebooks on WordPress

Ebooks are an obvious choice for creating digital products. They are relatively simple to write and produce. If you’ve been blogging for a while, then you can collect some of your old blog posts and turn them into chapters of a book.

Once your book is written, you can design a cover using a tool like Canva and create a PDF of your ebook.

Selling digital products on WordPress is easy with a plugin. To get started, you can see our guide on the best WordPress eCommerce plugins compared.

For digital downloads, we recommend Easy Digital Downloads. It’s relatively easy to use and includes all the features you need to create your online store.


15. Sell Online Courses

Selling an online course is another great way to make money online.

Courses usually sell for a much higher price point than ebooks. You can charge a premium for your expertise.

You’ll need to create the lessons for your course, plus any supporting materials that you want to include such as downloads, slides, checklists, templates, etc.

You will also need to decide whether you want to offer personalized support for your course. Some sites offer two tiers of each course: a basic version without support, and a premium version with email support.

Once your course is ready, you can use a learning management system (LMS) plugin to deliver the course to your audience.

We recommend using LearnDash with MemberPress.

For detailed instructions, see our guide on how to sell online courses using LearnDash.

16. Host a Paid Webinar

Webinars are a great way to build your audience, share your experience, and grow your business. But did you know they’re also a smart way to make money online?

Webinars are similar to online courses, but a webinar is live and often includes a question and answer section.

WordPress makes it easy to host a paid webinar. Whether you’re using your site to actually host the webinar, or just to advertise your webinar and register participants, it’s crucial for your webinar success.

For more details on how you can host a paid webinar, see our list of the 9 best webinar software for WordPress users.

Sell Services Online Using WordPress


If you’re looking for easy ways to make money online, selling services is the fastest way to get started. There’s no up front investment of creating a product or investing in inventory.

Instead, you can just create a “hire me” page on your website and start looking for your first client.

Here are a few ideas to get you started.

17. Offer Freelance Services

As a blogger, you’re already an expert on your niche. You can start earning an income by offering your skills and expertise as a freelancer.

Freelancing is a popular way to make money online because it doesn’t necessarily require any upfront investment of time or money. You can just start offering your services to your current audience.

Once you start freelancing, you’ll need a way to invoice and collect payments from your clients. We recommend using FreshBooks, but there are also other invoicing plugins for WordPress.

If you’re interested in freelancing to make some serious money online, then see our list of the top tools for WordPress freelancers, designers, and developers for help getting started.

18. Start Your Own Consulting Business

Consulting is another way to make money online from your blog and share your expertise.

Instead of offering your services, a consultant offers advice and strategy so that their clients can become more effective.

As with freelancing, there is no startup investment. You can start offering consulting services on your existing blog. All you need is to create a page with a form so users can request more information.

To easily create a professional, mobile-friendly form, we recommend WPForms. You can see this tutorial on how to create a request a quote form in WordPress to get started.

19. Become a Coach

If “consultant” doesn’t feel like the right title for you, you can consider becoming a coach instead.

A life coach offers advice, guidance, and accountability for setting goals and improving one’s life. There are also other kinds of coaches, such as blog coaches, writing coaches, and more.

Whatever your area of expertise is, you can provide one-on-one help to your audience with coaching sessions.

To save time and make things convenient for your clients, you can set up a booking form so readers can schedule coaching sessions right from your WordPress blog.

See our list of the 5 best WordPress appointment and booking plugins to get started.

Sell Physical Products Online Using WordPress

While selling digital products or services can be an easy way to start making money online, there’s nothing quite like selling real, physical products. Here are a few ways you can get started selling products with WordPress.

20. Start an Ecommerce Business With WooCommerce


Have an idea for your own product? Why not start your own online store?

WordPress makes it easy to create a shop or even add a shop to your existing blog using the free WooCommerce plugin.

Starting an online store can be a lot of work, since you need to create or buy the products and then ship them out yourself.

But selling physical products can be a rewarding experience, and sometimes a physical product is exactly what your audience wants.

To get started, see our tutorial on how to start an online store with WooCommerce.

You can also use Shopify or BigCommerce as WooCommerce alternative.

21. Create an Online T-shirt Store With WordPress

Creating your own t-shirt shop is easy with WordPress. Almost everyone wears t-shirts, so opening up a t-shirt shop is a great way to monetize any kind of blog. Designing t-shirts allows you to be creative and offer something unique to your audience.

It’s easy because there are services out there that allow you to upload your own designs, and they print / ship it for you. You get a profit share.

You can easily create your own t-shirt shop on your WordPress site using WP-Spreadplugin by Spreadshirt.


If you want a faster solution, then you can use a Shopify store which connects with dozens of t-shirt printing companies.

22. Create a WooCommerce Dropshipping Store

Dropshipping is another way you can create an ecommerce store on your WordPress website without having to handle inventory or ship items yourself.

With dropshipping, you create the store, manage the website, and customer service. But a dropshipping service will take your orders and ship them out to your customers. They’re an invisible third party that your customers don’t even know about.

You can use the WooCommerce plugin to create a dropshipping store. There’s also a WooCommerce Dropshipping addon plugin that allows you to automate the process.

23. Create an Amazon Affiliate WordPress Shop

One downside of dropshipping is that you have to find a good supplier, which can be a challenge, and sometimes you have to place a large order up front. This can make it difficult to get started without investing a lot of money.

If you want an easier way to set up an ecommerce site without having to ship products yourself, then you may want to try an Amazon Affiliate shop.

As with many of the items on this list, this works best if you specialize in a niche. If you offer everything, it’s impossible to compete with a big shop like Amazon. But in a small niche, you can differentiate yourself and really stand out.

For complete instructions, see our tutorial on how to create an Amazon affiliate store using WordPress.

Offering Platform as a Service

WordPress comes with some incredibly powerful plugins that are actually full-fledged platforms in their own right.

You can add such a platform to your blog or e-commerce store and offer it as a paid service. You get a cut from each sell, which allows you to earn passive income from user activity on your website.

24.Create an Online Marketplace Website

An online marketplace is like an eCommerce store where users cannot just buy but also sell their own products. Normally, WooCommerce assumes that you run a single vendor website.

You will need a plugin like WC Vendors to turn WooCommerce into a multi-vendor capable platform. After that, vendors will be able to register on your site and start selling.

You can make money by charging commission on each sell, or you can allow vendors to buy membership packages for their listings.

For more details, see our guide on how to make an online marketplace using WordPress.

25. Make an Auctions Website

An auction website allows users to bid on products to purchase them. This allows the sellers to maximize their profits and customers to find unique deals.

Ebay is probably the best example of an online auctions marketplace.

You can run auctions on your WordPress website and even allow third-party vendors to list their products as well. You can make money by charging for the listing or by getting a cut on each sell.

To build an auctions marketplace with WordPress, you will need the following add-ons.

WooCommerce (for shopping cart and payment features).
An auctions add-on
A multi-vendor add-on
For step by step instructions, see our guide on how to build an eBay like auctions website using WordPress.

26. Create a Job Marketplace website

Unlike a regular job listings website, a job marketplace allows you to make money on each job listing. Fiverr and UpWork are probably the best examples of online job marketplace websites.

You can promote your job marketplace as a micro-job platform for people working in the same niche as your blog. To make your platform more competitive you can select a very specific niche.

This will help you easily find customers and professionals who are unable to use large platforms because of too much irrelevant competition.

You can charge a small fee for job listings or when a job is completed. More successful completion of jobs will bring you more customers and freelancers in the future.

For details, see our step by step tutorial on how to make a Fiverr like Micro-Job website using WordPress.

Become a WordPress Designer or Developer


If you’re more technically inclined, then you can become a WordPress developer or designer in order to make money online. This will take more technical skills, but it’s not too hard to get started.

27. Develop WordPress Plugins

Plugins are what make WordPress so flexible and powerful. Plugins work like apps, allowing you to extend and modify any feature of your WordPress website.

Plugins come in all varieties, from very simple code modifications to complex software applications. If you have a basic grasp of how WordPress works and some simple PHP knowledge, you can create your own WordPress plugin.

As a plugin developer, there are many ways you can distribute your plugins. Anyone can submit a free plugin to the WordPress.org plugin directory, as long as they follow the WordPress plugin guidelines. This is a great way to gain experience and build a reputation for yourself as a WordPress plugin developer.

Once you’re ready to start selling premium plugins, you could choose to sell them on a site like MOJO Marketplace, or on your own WordPress site.

If you’re using your existing WordPress blog to sell plugins, you’ll want to make sure that the plugin you create directly fulfills a need of your audience. You can survey them to see what problems they need to solve on their WordPress site, and then create a plugin that solves that problem.

You can then sell the plugin on your site using Easy Digital Downloads.

28. Sell WordPress Themes

If you enjoy web design and development, you could start creating your own WordPress themes to sell.

This requires both design and technical skills. You have to know how to create a good-looking design, and also how to code it for WordPress.

Using a WordPress theme framework such as Genesis can give you a head start. Then you’ll need to design and code a beautiful child theme.

29. Sell Graphics on Your WordPress Site

If you like design more than coding, another option is to design and sell graphics on your WordPress site.

You can create graphics such as stock images or logos and sell them on your site using an ecommerce plugin. You can also join online marketplaces to sell your graphics as well.

30. Accept Donations


Last but not least, one way you can make money from your WordPress blog is simply to ask for it.

You can begin accepting donations in a few different ways. You could add a Paypal donate button or a Stripe donate button to your website. Or for a more professional look and advanced features like email marketing integration, you could use WPForms to create a donation form on your WordPress site.

Donations are last on the list because of their limited effectiveness, since you have to rely on the generosity of your readers. It’s usually more lucrative to offer them something in return.

Source: https://www.quora.com/How-can-we-earn-through-websites

45
Online Money Earning / How can we earn through websites?
« on: February 01, 2021, 11:42:39 AM »
How can we earn through websites?

here is a step-by-step formula on how you can start earning through your website:

Step 1 — Come up with a topic

Ask yourself this: “What am I passionate about?”

This could anything like food, technology, sports, makeup, fashion, shoes, movies, books, etc.

Once you find a topic (and please take the time to find something you are super passionate about), write it down and save it!

Step 2 — Get a domain name

You need to find a good domain name that goes along with your topic and is catchy!

For example, if you want to talk about sports then your domain name can be something like sporttalks.com (that is already taken but you can see how catchy it really is).

Please, do not get a free domain name. You are trying to earn money which means people have to give you their money. This requires a brand and a good reputation which will not be built with a free domain name.

You can get a domain name at GoDaddy for $0.99.

Step 3 — Get Website Hosting

You can do a quick Google search and find free hosting.

Or you can spend about $5 per month and get hosting from a company called HostMyte.

Why Should You Pay For Hosting?

A few things you will get with paid hosting compared to free hosting:

Better security
Faster loading time for your website
Bigger space
Easier to scale up your business and website

Step 4 — Install WordPress

WordPress is a free powerful tool that will make the creating of your website really easy.

Not only that but it will make blogging on your website very doable. (more about this later)

Go to YouTube and search “ Learn WordPress”

You will find super easy instructions on how to install it.

Now, you need a THEME/Skin for your Blog. Go here Theme Directory - Free WordPress Themes

To install the theme, Go to Youtube and search “ how to install WordPress themes.

Also, hosting companies like HostMyte, give you a one-click install to install WordPress on there.

Step 5 — Blogging

Content is key!

You need to live by that phrase.

On your website, you need to start writing articles (about 40–50 per day). I know this sounds crazy but again since you picked a topic you are passionate about, this shouldn’t be too hard.

For example, if you picked sports, you can write about the games that happened this week. Or your feelings about the coach’s or player’s performances. It’s an endless supply of things to talk about. (that’s like 3 topics to write about right there)

These articles don’t have to be anything fancy, quick 300+ words that flow together and is easy to read. (pretty much 5th grade level of writing)

If you have some money to spend, you can hire people in India, China, or even the Philippines to write articles for you. They can write 20–30 article or more per day for about $1–2 per article.

Why Blogging Is Important?

Two things will happen when you start blogging: your SEO rank (Google Ranks) will go up and more people will find and come to your website!

Step 6: Make Money

Finally, after all that hard work you have put in, it’s time to make money.

Note: You have only spent about $5 (or in some cases less than $1)

There are a few things you need to do to make money this way:

Capture leads on your website:
You need some type of form on your website that people can fill out to give you their name and email address.
Use a service like MailChimp or ContastContact to send these people emails about new articles, topics, news, etc. that has to do with your website.

Sell the products to these leads:
Once you have sent a few emails out to these people, you have gained their trust. Now you can start selling them products.

What to sell:
You can have Google Adsense on your website. This is Google placing ads on your website. Everytime someone clicks on the ad you will make a $0.25–5.

Amazon Affiliate Program, you can sign up to sell items from Amazon from your website. When someone buys a product using your link on your website, Amazon will pay you a percentage.

Write an eBook and sell it to the leads your captured.

Sell merchandise. This can be stickers, t-shirts, and more to people that are reading your articles.

Do Affiliate Marketing: Affiliate Marketing Made Simple: A Step-by-Step Guide

This is not something that will happen overnight. This will take about 2–3 months for you to do and start making money. But you if you put in the work then you will make thousands of dollars per month easily.

Source: https://www.quora.com/How-can-we-earn-through-websites

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 125