Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Sultan Mahmud Sujon

Pages: [1] 2 3 ... 105
1
যখন একাধিক ব্যক্তি একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পাদনের বা একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে সম্মিলিতভাবে কাজ করে, তখন তাদের একটি টিম বা দল বলা হয়। দলের প্রত্যেক সদস্যের নির্দিষ্ট কাজের দায়িত্ব থাকে এবং প্রত্যেক সদস্যের সম্মিলিত কাজের ওপর নির্ভর করবে পুরো টিমের সাফল্য বা ব্যর্থতা।

টিম গঠনের প্রয়োজনীয়তা
টিম নিয়ে কথা বলা শুরু করার আগে চলুন জেনে নিই কেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের টিম গঠন করা প্রয়োজন পড়ে। যখন কোনো একজন ব্যক্তির পক্ষে সব কাজ সামলে একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব হয় না বা একজনের দক্ষতা দিয়ে পুরো কাজটি সম্পাদন করা সম্ভব হয় না, তখন প্রয়োজন পড়ে বিভিন্ন দক্ষতার একাধিক লোক নিয়ে কাজ করার।

ভালো টিমের উদাহরণ হতে পারে একটি খেলার টিম। ধরুন, বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট টিম। টিমের খেলোয়াড়দের সামনে থাকে একটি লক্ষ্য। তা হলো জয়লাভ করা।



একটি ক্রিকেট টিমে বোলার আছেন, ব্যাটসম্যান আছেন, ফিল্ডার আছেন ও উইকেট কিপার আছেন। বোলাররা চেষ্টা করেন ভালো বোলিংয়ের মাধ্যমে প্রতিপক্ষের ব্যাটিং লাইনআপকে বিপর্যস্ত করতে। ব্যাটসম্যানরা চেষ্টা করেন ভালো ব্যাটিংয়ের মাধ্যমে রানের খাতা ভারী করতে। ফিল্ডাররা চেষ্টা করেন রান কম দিতে ও প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের আউট করতে। উইকেট কিপারও উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

আর দলের অধিনায়ক ও সহ-অধিনায়ক দলের নেতৃত্ব দেন এবং ভালো খেলার জন্য সবাইকে উজ্জীবিত রাখেন।

এবার এমন একটি দল ভাবুন তো, যে দলে সবাই শুধু ভালো ব্যাটিং করতে পারে অথবা সবাই শুধু ভালো বোলিং করতে পারে। তাহলে কী সেই দলটিকে একটি ভালো দল বলা যায়? যে দলে কোনো ফিল্ডার নেই অথবা উইকেট কিপার নেই, তারা কী জয়ী হতে পারবে? তেমনি কোনো প্রতিষ্ঠান বা উদ্যোগেও কাঙ্ক্ষিত সাফল্য পেতে ও লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বিভিন্ন দক্ষতার কর্মীর সমাহার থাকা উচিত।

টিমওয়ার্কের ধাপগুলো
যদিও কাজের ধরন বা লক্ষ্যমাত্রার ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন টিমের কাজের ধরন ভিন্ন রকম হতে পারে, তারপরও প্রতিটি টিমের কাজগুলোকে সাধারণত তিন ধাপে ভাগ করা যায়।


● পরিকল্পনা ধাপ
পরিকল্পনা ধাপটি সাধারণত টিম তৈরি করার সময়ই করা হয়। এই পর্যায়ে টিমের মিশন-ভিশন ও কৌশল নির্ধারণ করা হয়। যেমন কোনো প্রতিষ্ঠান শুরুতেই নির্ধারণ করে তার কী কী টিম দরকার। প্রয়োজন আনুসারে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সেলস টিম, মার্কেটিং টিম, রিসার্চ টিম, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট টিম, প্রশাসন টিম, মানবসম্পদ টিম ইত্যাদি গঠন করা হয়।


● কার্যসম্পাদন ধাপ

এই ধাপে পরিকল্পনা অনুযায়ী কার্যসম্পাদন করা হয়। লক্ষ্যে পৌঁছানর জন্য কাজের কতটুকু শেষ হলো, লোকবল, প্রযুক্তি ও তথ্যের কতটুকু ব্যবহার করা হচ্ছে, কাজের সমন্বয়, মতামত, ট্রেনিং, নিরীক্ষণ ইত্যাদির মাধ্যমে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের চেষ্টা করা হয়।

● পরিচালনা ধাপ
পরিচালনার কাজটি পরিকল্পনা ও কার্যসম্পাদন ধাপ থেকেই করা হয়। কাজ করতে গিয়ে টিমের সদস্যদের মধ্যে মতের অমিলের জন্য যেন কাজের বিঘ্ন না ঘটে, সেদিকে খেয়াল রাখা, সদস্যদের আত্মবিশ্বাস ও উদ্যম বজায় রাখা, সবার সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করার মানসিকতা বজায় রাখা ইত্যাদি কাজগুলো করা হয় পরিচালনা ধাপে।

ভালো টিম তৈরির উপায়
● একটি কার্যকর টিম তৈরি করতে হলে অবশ্যই একজন যোগ্য লিডার থাকতে হবে, যিনি পুরো টিমকে সঠিক পথে পরিচালিত করে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন করবেন।

● চাকরি চলাকালে ব্যবহারিকভাবে বিভিন্ন বিষয় শিখতে পারার ব্যবস্থা করতে হবে। এতে টিমের সদস্যরা নিজেদের দক্ষতা বাড়িয়ে টিমের সাফল্য অর্জনে আরও বেশি ভূমিকা রাখতে পারবেন।

● টিমের সদস্যদের দক্ষতার মধ্যে বৈচিত্র্য থাকতে হবে। তাহলে একেকজন সদস্য একেকটি বিষয় ভালোভাবে সামাল দিতে পারবেন এবং টিমের পারফরম্যান্স ভালো হবে।

● প্রত্যেক সদস্যের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ ও লক্ষ্য অর্জনের মানসিকতা তৈরি করতে হবে।

● প্রত্যেক সদস্যের মধ্যে ভালো যোগাযোগব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

● সদস্যদের দায়িত্ব নেওয়ার মানসিকতা তৈরি করতে হবে।

● টিমের সবার মতামতকে মূল্যায়ন দিতে হবে, যেন সবাই তাঁদের ভাবনা ও পরিকল্পনার কথা বলেন।

● ভালো কাজের প্রশংসা করতে হবে এবং সম্ভব হলে পুরস্কারের ব্যবস্থা করতে হবে। এতে টিমের সদস্যরা ভালো কাজ করতে অনুপ্রাণিত হবেন।


Source: https://www.prothomalo.com/chakri/%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%9C%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%93-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%B7%E0%A7%8D%E0%A6%A0%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%AB%E0%A6%B2%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A6%93%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%95

2



ছোটবেলা থেকেই চাষাবাদের প্রতি ঝোঁক ছিল তাঁর। বছর দুই আগে পড়ার পাট চুকিয়ে তাই সোজা নেমে পড়লেন চাষবাসে। মরুর ফল ‘তিন’ চাষ করলেন বাড়ির পাশের ৩৫ শতাংশ জমিতে। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই ফল পাকতে শুরু করে। গত দুই সপ্তাহে ২৫ কেজি (এক হাজার টাকা কেজি) তিন বিক্রি করেছেন। এ বছর ৯ লাখ টাকার ফল বিক্রি এবং আরও ৪ লাখ টাকার কলমের চারা বিক্রি করার ব্যাপারে আশাবাদী জাবিদ আল মামুন (২৭)। বাড়ি তাঁর টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কীর্তনখোলা গ্রামে।

জাবিদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রথমে কিছুটা শঙ্কায় ছিলাম। পরে কঠোর পরিশ্রম, নিবিড় পরিচর্যা আর কৃষি অধিদপ্তরের লোকজনের পরামর্শে সফল হয়েছি। প্রতি কেজি তিন ফল এক হাজার টাকা দরে বিক্রি করছি। আগ্রহী স্থানীয় ক্রেতারা বাগান থেকেই কিনে নেন। প্রথম বছরে বাগানের খরচ উঠবে এবং পরের বছর থেকে লাভের মুখ দেখতে পারব বলে আশা করছি।’ তিনি আরও বলেন, চলতি বছর বাগান থেকে কমপক্ষে দেড় টন তিন ফল বিক্রির আশা করছেন। তাঁর খরচ হয়েছে প্রায় ৭ লাখ টাকা। মরুভূমির ফল; দেশে খুব একটা পরিচিত না। তাই অনেকে তাঁর বাগান দেখতে বাড়িতে ভিড় করেন।

মরুর দেশের ফল ‘তিন’। এটি ডুমুরজাতীয় একধরনের ফল। স্বাদে খুব মিষ্টি ও রসাল হয়। পুষ্টিগুণে ভরা এই ফল মধ্যপ্রাচ্যে অনেক জনপ্রিয়। মধ্যপ্রাচ্য ও পশ্চিম এশিয়ায় এটি বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করা হয় এবং এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থকরী ফসল। বাংলাদেশে এটি ড্রাই ফ্রুট হিসেবে আমদানি হয়ে থাকে। ফলে বাংলাদেশে অনেকে এই ফলের বাণিজ্যিক চাষের উদ্যোগ নিয়েছেন।

ভারত, তুরস্ক, মিসর, জর্ডান ও যুক্তরাষ্ট্রে এই ফল আঞ্জির নামে পরিচিত। এর আরবি নাম তিন। গাছপাকা এক কেজি তিন ফলের গড় বাজারমূল্য ১ হাজার টাকা। এই ফলের গাছ ১০০ বছর পর্যন্ত বাঁচে। চারা লাগানোর তিন মাসের মধ্যে গাছে শতভাগ ফল ধরে। প্রথম বছরে ১ কেজি, দ্বিতীয় বছরে ৭-১১ কেজি, তৃতীয় বছরে ২৫ কেজি—এভাবে ধারাবাহিকতা বজায় রেখে টানা ৩৪ বছর পর্যন্ত ফল দিতে পারে একটি তিনগাছ। আকারে দেশীয় ডুমুরগুলোর চেয়ে বেশ বড় হয়। আর পাকলে বেড়ে দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ হয়। আঁটি ও বিচিহীন এই ফল আবরণসহ খাওয়া যায়।

সখীপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় বাণিজ্যিকভাবে তিন ফলের চাষ করা হলেও টাঙ্গাইলে এই প্রথম ফলটি চাষ করা হচ্ছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিয়ন্তা বর্মন প্রথম আলোকে বলেন, সখীপুরে এ ফলের বাগানটি জাবিদ আল মামুনই প্রথম করেছেন। জাবিরের সাফল্য কামনা করেন তিনি। তিন ফলের চাষাবাদের মাধ্যমে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব। এ ছাড়া এই ফল চাষ করে বেকারত্ব দূর করা যাবে।

সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালট্যান্ট শাহিনুর আলম বলেন, ফলটিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি১, ভিটামিন বি২ রয়েছে। এ ছাড়া প্রায় সব রকমের জরুরি পুষ্টিগুণ যেমন ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, সোডিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, কার্বোহাইড্রেট, সুগার, ফ্যাট, প্রোটিন, থায়ামিন, রিবোফ্লাবিন পটাশিয়াম ইত্যাদির পাশাপাশি এর অনেক ঔষধি গুণও রয়েছে। ফলটি কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময়, ওজন কমানো, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে হৃৎপিণ্ড সুস্থ রাখাসহ নানা উপকারে আসে। এটি ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়ক হিসেবে কাজ করে।


Source: https://www.prothomalo.com/bangladesh/district/%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%BF-%E0%A6%A8%E0%A7%9F-%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%A8-%E0%A6%AB%E0%A6%B2-%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%B7%E0%A7%87%E0%A6%87-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%AB%E0%A6%B2%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%81%E0%A6%9C%E0%A6%9B%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A6

3



ছবি ও ভিডিও বিনিময়ের জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি সাইবার হামলার সংখ্যাও বাড়ছে। বেশির ভাগ সময় ব্যবহারকারীদের অসচেতনতার কারণেই ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে হামলা চালাচ্ছে সাইবার অপরাধীরা। অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখতে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি নিচের বিষয়গুলো মেনে চলতে হবে।

লগইন অ্যাক্টিভিটি চেকআপ
আপনার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে অন্য কেউ গোপনে প্রবেশ করেছে কি না, তা জানা যাবে অ্যাক্টিভিটি চেকআপের মাধ্যমে। আপনার যন্ত্র ছাড়া অন্য কোনো যন্ত্র থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে লগইন করা হয়েছিল কি না, তা–ও জানা যাবে। এ জন্য প্রথমে ইনস্টাগ্রাম অ্যাপে প্রবেশ করে, প্রোফাইল ট্যাবে প্রবেশ করে সাইডবার মেনু থেকে ‘সেটিংস’ অপশনে প্রবেশ করতে হবে। এবার Security অপশন থেকে ‘Login Activity’ নির্বাচন করে ‘Instagram Login Activity’ অপশনে ট্যাপ করলেই কোন কোন যন্ত্র থেকে আপনার অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করা হয়েছে, সেগুলোর তালিকা ও অবস্থান দেখা যাবে। তালিকায় অপরিচিত কোনো যন্ত্র থাকলে নামের পাশে থাকা তিনটি ডট মেনুতে ক্লিক করে ‘Log out’ অপশন নির্বাচন করতে হবে।

টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন ব্যবহার
ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখতে টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন অপশনটি খুবই কার্যকর। এ জন্য প্রথমে ইনস্টাগ্রামের সেটিংসে প্রবেশ করতে হবে। তারপর ‘Security’ অপশনে ক্লিক করে Two-factor Authentication অপশনে নির্বাচন করে Get Started অপশনে ক্লিক করতে হবে।

প্রাইভেট অ্যাকাউন্ট
ইনস্টাগ্রামে বিনিময় করা পোস্ট সবাইকে দেখাতে না চাইলে প্রাইভেট মোড ফিচার ব্যবহার করতে হবে। এই মোড চালু থাকলে আপনার পোস্ট করা ছবি ও ভিডিও শুধু অনুসারীরা দেখতে পারবেন। অনুসারী ছাড়া অন্য কেউ দেখার সুযোগ পাবে না। ফলে অপরিচিত ব্যক্তিদের নজরদারি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। এ জন্য প্রথমে ইনস্টাগ্রাম সেটিংসে প্রবেশ করে Privacy অপশন নির্বাচন করতে হবে। এরপর Private account এর পাশে থাকা টগল অপশন on করলেই ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট পাবলিক থেকে প্রাইভেট হয়ে যাবে।


Source: https://www.prothomalo.com/education/science-tech/%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE-%E0%A6%85%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%89%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%9F-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%A6-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%96%E0%A6%A4%E0%A7%87

4
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, ইন্টারনেটে ভিডিও শেয়ারিং মাধ্যম ইউটিউব ও ইন্টারনেটভিত্তিক যোগাযোগমাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপের মতো মাধ্যমগুলোর ক্ষেত্রে নতুন একটি প্রবিধান তৈরি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এই প্রবিধান তৈরি হলে এসব মাধ্যমের ক্ষেত্রে নানা বিধিনিষেধ আসতে পারে।

বিটিআরসি প্রবিধানটির খসড়া তাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়েছে, ইন্টারনেটভিত্তিক মাধ্যমগুলোকে বাংলাদেশে কর্মী নিয়োগ করতে হবে, সশরীর যোগাযোগের ঠিকানা থাকতে হবে, অভিযোগ নেওয়া ও নির্দিষ্ট সময়ে তা নিষ্পত্তি করতে হবে। আদালত ও বিটিআরসি নির্দেশ দিলে নির্দিষ্ট কনটেন্ট বা আধেয় ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সরিয়ে নিতে হবে।

‘ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সি’র মহাপরিচালক ‘জরুরি’ পরিস্থিতিতে যদি মনে করেন কোনো আধেয় মানুষকে দেখতে দেওয়া উচিত নয়, তাহলে তা শুনানি ছাড়াই তা সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া যাবে—এ বিষয়ও রয়েছে খসড়ায়।

বর্তমানে ফেসবুক বা ইউটিউবের মতো মাধ্যমগুলো থেকে কোনো আধেয় সরাতে তাদের ওপরই নির্ভর করতে হয় বিটিআরসিকে। দেখা যায়, বিটিআরসির নির্দেশনার পরও অনেক সময় সংশ্লিষ্ট মাধ্যম আধেয় সরায় না। সরানোর বিষয়টি নির্ভর করে সংশ্লিষ্ট মাধ্যমের নিজস্ব নীতিমালার ওপর।

উচ্চ আদালত বিটিআরসিকে এসব বিষয়ে একটি প্রবিধানের খসড়া তৈরির নির্দেশ দিয়েছিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই খসড়াটি তৈরি হয় বলে জানান বিটিআরসির আইনজীবী খন্দকার রেজা-ই রাকিব। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সব পক্ষের মতামত ও পরামর্শ নিয়ে আরও বিশ্লেষণ করে এটি চূড়ান্ত করা হবে। তিনি জানান, খসড়াটি তৈরির সময় ভারত, সিঙ্গাপুর, ইংল্যান্ড, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের নীতিমালাগুলো দেখা হয়েছে। উল্লেখ্য, খসড়াটি নিয়ে মতামত দেওয়ার শেষ সময় আগামীকাল শুক্রবার।

যা আছে খসড়ায়

বিটিআরসি বলছে, নতুন প্রবিধানমালা সব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম, ডিজিটাল মাধ্যম এবং সব ওভার দ্য টপ (ওটিটি) মাধ্যমের জন্য। ওটিটি বলতে ‘পাবলিক’ ইন্টারনেটের আধেয়, সেবা ও অ্যাপ বোঝাবে, যা দিয়ে গ্রাহকদের সেবা দেওয়া হয়।

‘ডিজিটাল, সোশ্যাল মিডিয়া এবং ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন রেগুলেশন-২০২১’ শিরোনামের ১৬ পৃষ্ঠার খসড়া প্রবিধানমালা অনুযায়ী, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা, সার্বভৌমত্ব, বিদেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃঙ্খলা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে হুমকির মুখে ফেলে এবং সরকারের গোপনীয়তা ভঙ্গ করে, এমন কিছু প্রচার করা যাবে না। মুক্তিযুদ্ধ, জাতির জনক, জাতীয় সংগীত বা জাতীয় পতাকার বিরুদ্ধে এবং ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত লাগে, এমন কিছু প্রচারে বিরত থাকতে হবে। পর্নোগ্রাফি, গোপনীয়তা লঙ্ঘনকারী এবং অবমাননা ও মানহানিকর আধেয় প্রচার করা যাবে না।

খসড়াটির বিষয়ে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ডিনেট ও আই সোশ্যালের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান নির্বাহী অনন্য রায়হান প্রথম আলোকে বলেন, প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে বলা যায়, এই প্রবিধানে ‘মোরাল পুলিশিং’ হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

খসড়ায় আরও বলা হয়, এই প্রবিধানে নিষিদ্ধ আধেয় ব্যবহারকারী মুছে ফেললেও, তদন্তের জন্য ১৮০ দিন সংরক্ষণ করতে হবে।

অফিস ও কর্মকর্তা নিয়োগ

খসড়ায় বলা হয়েছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোকে তিনজন কর্মকর্তা নিয়োগ দিতে হবে, যাঁরা বাংলাদেশে বসবাস করবেন। ওয়েবসাইটে ও মুঠোফোন অ্যাপে অভিযোগ গ্রহণকারী কর্মকর্তার নাম এবং তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের উপায় থাকতে হবে। এই কর্মকর্তা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযোগ গ্রহণ করবেন এবং তা ২০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে।

বাংলাদেশে বসবাসকারী একজন প্রতিপালন কর্মকর্তাও (কমপ্লায়েন্স অফিসার) নিয়োগ দিতে হবে এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং সরকারের কর্মকর্তাদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক সমন্বয়ের জন্য একজন প্রতিনিধি থাকতে হবে।

ইন্টারনেটভিত্তিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো বরাবরই বলে আসছে, তাদের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহারকারীদের বার্তা শুধু প্রেরণকারী ও গ্রহণকারী দেখতে পান (এনক্রিপ্টেড)। কিন্তু বিটিআরসির প্রবিধানের খসড়া বলছে, বিধি লঙ্ঘনকারী কোনো বার্তা আদান-প্রদান করলে আদালত ও বিটিআরসির নির্দেশ সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট বার্তা প্রথম যিনি দিয়েছিলেন, তাঁকে শনাক্ত করে দিতে হবে। প্রথম ব্যক্তি যদি দেশের বাইরে অবস্থান করেন, তবে দেশে যিনি অবস্থান করবেন, তিনি ‘প্রথম’ বলে অভিযুক্ত হবেন।

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ সুমন আহমেদ সাবির বলেন, খসড়া প্রবিধানে ওটিটি প্ল্যাটফর্মের সংজ্ঞাই ঠিকমতো ব্যাখ্যা করা হয়নি। অনেক বিষয় অস্পষ্ট। তা স্পষ্ট না করলে এই বিধি নিয়েও প্রশ্ন উঠবে।

5




মনিটরের পর্দার নিচে বা ডানে বাঁয়ের শেষ প্রান্তে মাউসের কারসর (cursor) বা পয়েন্টার থাকলে অনেক সময় খুঁজে পাওয়া যায় না। চাইলে কি–বোর্ডের কন্ট্রোল-কি চেপেই মাউসের কারসরের সন্ধান পাওয়া যায়। এ জন্য প্রথমে start মেন্যুতে mouse লিখে সার্চ করে Mouse settings অপশনে ক্লিক করতে হবে। এবার Related settings সেকশনের মধ্যে থাকা Additional mouse options নির্বাচন করতে হবে।

Mouse Properties উইন্ডো চালু হলে Pointer Options ট্যাবে ক্লিক করতে হবে। এবার নিচে থাকা Show location of pointer when I press the CTRL key লেখার পাশের চেকমার্কে ক্লিক করুন। এরপর Mouse Properties উইন্ডো থেকে Apply নির্বাচন করে ok করতে হবে।


Source: https://www.prothomalo.com/education/science-tech/%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%89%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%B0-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%81%E0%A6%9C%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%AC%E0%A7%8B%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A1
এবার কম্পিউটারে কাজ করার সময় কি–বোর্ডে CTRL (কন্ট্রোল-কি) চাপলেই অ্যানিমেটেড বৃত্তের মধ্যে মাউসের কারসর দেখা যাবে।


6
আমাদের বাসায় প্রথম কম্পিউটার এসেছিল ২০০০ সালে। তার হার্ডডিস্ক ছিল ২০ গিগাবাইট, র্যাম ৩২ মেগাবাইট, পেন্টিয়াম থ্রি মডেলের। সেই কম্পিউটার তখন বাজারে সবচেয়ে নতুন। সেই কম্পিউটারে একটা অডিও গান কপি করতে লাগত ৩ থেকে ৪ মিনিট। তখন আমরা নিয়মিত বিরতিতে ওয়ালপেপার মুছতাম জায়গা বের করার জন্য। এখন আমার বাসায় যে ডেস্কটপ ব্যবহার করা হচ্ছে, তার হার্ডডিস্ক ৬ টেরাবাইট, সঙ্গে ২৫০ গিগাবাইটের একটা এসএসডিও আছে, র্যাম ১৬ গিগাবাইট এবং প্রসেসর কোর-আই-ফাইভ এইটথ জেনারেশন।

মাঝখানের এই ১৮ বছরে কম্পিউটারজগতে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন হয়েছে। এখন কম্পিউটার নিয়ে প্রচুর গবেষণা হচ্ছে, হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যারের প্রচুর চাহিদা তৈরি হচ্ছে। সেগুলো সরবরাহ করে কুলানো যাচ্ছে না, বাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী বাড়ছে, গবেষণা হচ্ছে, অনেক অনেক কাজকর্ম করতে গিয়ে আগের ক্ষমতার কম্পিউটার দিয়ে কুলাচ্ছে না। কাজেই আরও বেশি ক্ষমতার চিপ তৈরি করতে হচ্ছে। সবকিছু মিলিয়ে মোটামুটি এলাহি অবস্থা। এই পরিবর্তনের মধ্যেই আমরা প্রযুক্তিগত প্রতিযোগিতার সুবিধাটুকু পেয়ে গেছি। আমাদের কাছে কম্পিউটার এখন অনেক সহজলভ্য, আগের চেয়ে অনেক বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন।



গুগল, আইবিএম এবং আরও কয়েকটি সিলিকন ভ্যালির স্টার্টআপের মধ্যে বেশ অনেক দিন ধরে তুমুল প্রতিযোগিতা চলছে। এটি হচ্ছে পরবর্তী প্রজন্মের সুপারকম্পিউটার তৈরির প্রতিযোগিতা। আমাদের বর্তমান প্রজন্মের কম্পিউটার এখন অনেক কিছুই করতে পারে। ১৫ বছর আগের তুলনায় কম্পিউটারের কাজ করার ক্ষমতা বহুগুণে বেড়েছে। তারপরও এ যুগের কম্পিউটার দিয়ে আমরা অনেক কাজ করতে পারি না বা বিষয়টি অনেক সময়সাপেক্ষ হয়ে দাঁড়ায়।

শিগগিরই বাজারে আসছে কোয়ান্টাম কম্পিউটার। ঠিক কবে নাগাদ ওটা সাধারণ ক্রেতার হাতের নাগালে আসবে, বলা মুশকিল। কিন্তু নিঃসন্দেহে বলা যায়, সেই কম্পিউটারের ক্ষমতা বর্তমান যেকোনো কম্পিউটারের চেয়ে বহুগুণে বেশি হবে। সে লক্ষ্যেই বেশ কতগুলো প্রতিষ্ঠান দিন-রাত মোটামুটি পাগলের মতো কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। চেষ্টা করছে পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী কম্পিউটার তৈরির জন্য।

কোয়ান্টাম কণিকাগুলো মূলত অতিপারমাণবিক কণা। সেগুলো একই সঙ্গে একাধিক অবস্থায় (State) থাকতে পারে। অন্যান্য কম্পিউটারের চেয়ে এর কাজ সম্পন্ন করার প্রক্রিয়াটাই ভিন্ন। এটাই হবে এই কম্পিউটারের সবচেয়ে বড় সুবিধা। বর্তমানের সাধারণ কম্পিটারের ক্ষমতা হিসাব করা হয় প্রতি সেকেন্ডে কত বিটের অপারেশন করতে পারে, তার ওপর। সাধারণ কম্পিউটারগুলোয় বিটসংখ্যা হয় দুটি—হয় ০ অথবা ১। এটাকে চাইলে ভোল্টেজ আপ আর ডাউনের সমতুল্য হিসেবে চিন্তা করা যেতে পারে। কোয়ান্টাম কম্পিউটারে বিটকে বলে কোয়ান্টাম বিট বা সংক্ষেপে কিউবিট (Qbit)। কোয়ান্টাম কণিকাগুলো একই সঙ্গে একাধিক অবস্থায় থাকতে পারে। অর্থাৎ কিউবিটের মান চাইলে একই সঙ্গে ০ ও ১ দুটোই হতে পারে। শুধু তা-ই কিন্তু নয়! বরং ১ আর ০ এই দুটি অবস্থার সুপারপজিশনের কারণে কিউবিটের মান আরও অনেক কিছুই হতে পারে। অর্থাৎ আরও অনেক বেশি তথ্য ধারণ করা সম্ভব।

কিউবিটের ধারণাটা কেমন হতে পারে? কাল্পনিক একটা গোলক কল্পনা করুন, ক্ল্যাসিক্যাল কম্পিউটারগুলো শুধু এই গোলকের দুই মেরুর দুটি মান গ্রহণ করতে পারে। কোয়ান্টাম কম্পিউটার এই গোলকপৃষ্ঠের ওপর যেকোনো মান গ্রহণ করতে পারবে। ফলে ক্ল্যাসিক্যাল কম্পিউটারের তুলনায় এর তথ্য নিয়ে কাজ করার ক্ষমতা বহুগুণে বেশি হয়। কিন্তু শক্তি খরচ হয় অনেক কম। একটা ফোটন, নিউক্লিয়াস অথবা ইলেকট্রন, এরা সবাই কিউবিট হিসেবে কাজ করতে পারে। এখনকার একদল গবেষক ফসফরাস মৌলের সর্ববহিস্থ কক্ষপথের ইলেকট্রনকে কিউবিট হিসেবে ব্যবহার করছেন।


Source: https://www.bigganchinta.com/technology/quantum-computer

7
রিক্সা ডাটাবেজের আওতায় আনা
ড্যাফোডিল স্মার্ট সিটি, আশুলিয়া, ঢাকা


সূচনাঃ রিকশা বা রিক্সা বা সাইকেল রিকশা একপ্রকার মানবচালিত যানবাহন।রিকশা তার উৎপত্তিক্ষেত্র জাপান থেকে ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের নানা প্রান্তে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশে রিকশা একটি বহুল ব্যবহৃত পুরোন যানবাহন। এদেশের আনাচে কানাচে রয়েছে রিকশা। দেশটির রাজধানী ঢাকাকে বিশ্বের রিকশা রাজধানী বলা হয়। ২০১৯ সালের রিপোর্ট অনুযায়ী, ঢাকার রিকশার ওপর নির্ভরশীল '২৭ লাখ জীবিকা' ঢাকার এসব রিকশার ওপর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অন্তত ২৭ লাখ মানুষের জীবিকা নির্ভর করে বলে গবেষণায় জানা যায়।

কেইস স্টাডি:

যে ভাবে আইডিয়াটি মাথায় আসলো। চাঁদপুর থেকে আমার শাশুড়ি ঢাকা আসে। রাতে ফেরার সময় কয়েকজন রিক্সা চালক মিলে টাকা পয়সা নিয়ে নেয়। তখন মনে হলো এদের কোন ডাটাবেজ নেই , নেই কোন মার্ক করার মত জিনিস। তাই প্রতিটি রিক্সাকে একটি সংখ্যার মাধ্যমে ডাটাবেজের আওতায় আনলে সহজেই চিহ্নিত করা সম্ভব হবে।


সংখ্যার মাধ্যমে ডাটাবেজে আনার সুবিধা কি কি হতে পারে ?

সংখ্যার মাধ্যমে চেনা যাবে
এক প্রকার নিবন্ধনের মধ্যে চলে আসবে
নিদিষ্ট এলাকায় চলাচল করতে পারবে
সংখ্যায় মার্কিং করা থাকলে যাত্রী রাতে বেলাও উঠতে সাহস পাবে


ড্যাফোডিলের কি সুবিধা?

ডাটাবেজ ড্যাফোডিলের কাছে থাকবে
ড্যাফোডিল স্মার্ট সিটি নাম, সবার মুখে মুখে পরিচিতি পাবে
যে সংখ্যাটি দেয়া হবে তার নিচে সৌজন্যে ড্যাফোডিল স্মাট সিটি লিখা থাকবে
এই ডাটাবেজের ফলে সরকার বা সশস্ত্র বাহিনীর সাথেও যৌথ উদ্যোগ হতে পারে
কর্পোরেট সোশ্যাল রেসপনসিবিলিটি হিসেবে ড্যাফোডিল পাবলিক যাতায়াতের সেফ্টি নিয়ে ভাবে


ভেরিফিকেশন?

রিক্সা ম্যানেজমেন্ট নামে অ্যাপ তৈরি করা যেতে পারে i.e Uber, Pathao
স্টিকার সম্বলিত বার কোড - অ্যাপের মাধ্যমে rickshaw ভেরিফিকেশন করা যেতে পারে


কি ভাবে করবো?

এলাকার লোকাল থানায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা
এলাকার লোকাল চেয়ারম্যান/মেম্বারদের সাথে আলোচনা


8
গণপরিবহনে হাফ পাস নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নেওয়া হলো। কাল বুধবার থেকে বেসরকারি মালিকানাধীন গণপরিবহন বাসে অর্ধেক ভাড়ায় চলতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। আজ মঙ্গলবার ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ এ ঘোষণা দেন।

রাজধানীর পরীবাগে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির কার্যালয়ে আজ সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন খন্দকার এনায়েত উল্যাহ। তিনি বলেন, নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছবিযুক্ত পরিচয়পত্র দেখিয়ে সকাল সাতটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত অর্ধেক ভাড়ায় বাসে চলাচল করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। সাপ্তাহিক ছুটি, সরকারি ছুটি ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মৌসুমি ছুটির সময় অর্ধেক ভাড়া দিতে পারবেন না শিক্ষার্থীরা।

খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, এ সিদ্ধান্ত কাল ১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে। শুধু ঢাকা মহানগরে চলাচলকারী বাসে হাফ ভাড়া দেওয়া যাবে। ঢাকার বাইরের জন্য এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে না। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের দাবির ব্যাপারে তাঁরা মালিক–শ্রমিক ও বিআরটিএর সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন। এরপর গতকাল ১২০টি পরিবহন কোম্পানির এমডিদের সঙ্গে এবং ৫টি শ্রমিক সংগঠন ও ফেডারেশনের সঙ্গে বৈঠক করে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা।

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে গতকাল রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় নিহত এসএসসির ফলপ্রত্যাশী মাইনুদ্দিন ইসলাম দুর্জয়ের পরিবারের প্রতি শোক জ্ঞাপন ও সমবেদনা জানান এবং দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি করেন সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির নেতারা। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী ও ভাইস চেয়ারম্যান সাদেকুর রহমান প্রমুখ।

https://www.prothomalo.com/bangladesh/capital/%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%A5%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A7%80%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A7%87%E0%A6%95-%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BE-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%95%E0%A6%B0-%E0%A6%A2%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BE

9
বিশ্বজুড়ে প্রায় ছয় ঘণ্টা ফেসবুক বন্ধ থাকায় উদ্বেগ ছড়িয়েছিল ব্যবহারকারীদের মনে। তবে গতকাল মঙ্গলবার ফেসবুক কর্তৃপক্ষ দাবি করেছে, ফেসবুক বন্ধ হয়ে যাওয়ার পেছনে কোনো ক্ষতিকর প্রোগ্রাম বা কার্যক্রমের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। খবর রয়টার্সের।

এর আগে সোমবার ত্রুটিপূর্ণ কনফিগারেশন পরিবর্তনের কারণে ফেসবুকের সব সেবা বন্ধ হয়ে যায়। এতে বিশ্বজুড়ে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও হোয়াটসঅ্যাপের মতো ফেসবুকের সেবাগুলো প্রায় ছয় ঘণ্টা ব্যবহার করতে পারেননি ব্যবহারকারীরা। এর আগে ফেসবুকের পক্ষ থেকে ত্রুটিপূর্ণ কনফিগারেশন পরিবর্তনের বিষয়টি পরিকল্পিত নাকি কেউ ফেসবুকের সার্ভারে ঢুকে পড়েছিল, তা পরিষ্কার করা হয়নি।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সার্ভার ডাউন হওয়ায় সোমবার রাত নয়টার কিছু সময় পর থেকে জনপ্রিয় এই যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে বার্তা আদান-প্রদান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েন বিশ্বজুড়ে লাখো ব্যবহাকারী। মঙ্গলবার ভোররাত সাড়ে চারটার দিকে এক টুইটবার্তায় সার্ভার সচল হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, সার্ভার জটিলতায় এক টুইটবার্তায় ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ক্ষমা চেয়েছে ফেসবুক।দীর্ঘ সময় ধরে এ ধরনের বিভ্রান্তি বিরল। এর আগে ২০১৯ সালে সার্ভার জটিলতার কারণে ফেসবুক এবং এর অন্যান্য অ্যাপ বিশ্বজুড়ে ১৪ ঘণ্টারও বেশি সময় ব্যবহার করা যায়নি। ফেসবুকের মাসিক সক্রিয় ব্যবহারকারী এখন ২৯০ কোটি। অর্থাৎ বিশ্বব্যাপী এই পরিমাণ অ্যাকাউন্ট থেকে মাসে একবার হলেও ফেসবুকে লগইন করা হয়। এই ব্যবহারকারীদের ৪ কোটি ৮০ লাখের বাস বাংলাদেশে। অন্যদিকে বিশ্বব্যাপী ১২০ কোটি মানুষ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করছেন।

ফেসবুক গণতন্ত্র ও শিশুদের ক্ষতি করছে

ফেসবুকের একজন সাবেক কর্মী মার্কিন আইনপ্রণেতাদের বলেছেন, কোম্পানির সাইট এবং অ্যাপগুলো শিশুদের ক্ষতি করছে। এ ছাড়া বিভাজন সৃষ্টিসহ আমাদের গণতন্ত্রকে দুর্বল করছে। ফ্রান্সেস হজেন (৩৭) নামের ওই কর্মী ফেসবুকে প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি এখন ফেসবুকের সমালোচক (হুইসেলব্লোয়ার) হিসেবে আলোড়ন তুলেছেন। ক্যাপিটল হিলের ঘটনা নিয়ে শুনানিতে হাজির হয়ে তিনি ফেসবুকের সমালোচনা করেন।

তবে এ বিষয়ে ফেসবুক বলছে, হজেন যে বিষয়টি নিয়ে শুনানিতে কথা বলেছেন, সে বিষয়ে তাঁর কোনো জ্ঞান নেই। ফেসবুকের বিরুদ্ধে ব্যাপক যাচাই-বাছাই এবং নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ক্রমবর্ধমান চাপের মধ্যেই এ হজেনের সমালোচনার বিষয়টি সামনে এল। গতকাল মঙ্গলবার রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটিক সিনেটররা কোম্পানিটির পরিবর্তন নিয়ে একমত হন। দুই রাজনৈতিক দলের এক বিষয় নিয়ে একমত হওয়ার ঘটনা দুর্লভ।

গত রোববার সিবিএস নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হজেন বলেন, সম্প্রতি তিনি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বেশ কিছু অভ্যন্তরীণ নথি দিয়েছেন। ৬০ মিনিটস নামের অনুষ্ঠানে হজেন বলেন, ব্যবহারকারীদের মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়টি গুরুত্ব না দিয়েই বারবার মুনাফার দিকে নজর দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এর মধ্যে অনেক তরুণীও রয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার শুনানির সময়েও তিনি এ নিয়ে কথা বলেন। হজেন বলেন, কোম্পানির নেতৃত্বরা জানেন কীভাবে ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামকে নিরাপদ করা যাবে। কিন্তু তাঁরা লাভের কথা ভেবে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন আনেন না।

হজেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গেরও সমালোচনা করেন। ফেসবুকের ওপর ব্যাপক নিয়ন্ত্রণ রাখা নিয়ে তিনি জাকারবার্গের সমালোচনা করে বলেন, জাকারবার্গের কোনো জবাবদিহি করতে হয় না।

10
Science and Information / ফোর-জির ভেতর-বাহির
« on: September 29, 2021, 10:03:41 AM »



‘রানার ছুটেছে তাই ঝুম ঝুম ঘণ্টা বাজছে রাতে...’ প্রযুক্তির এই যুগে সুকান্ত ভট্টাচার্যের রানারের দেখা প্রায় মেলে না বললেই চলে। সাম্প্রতিক কালে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগের সুযোগ বৃদ্ধি পাওয়ায় ব্যক্তিগত চিঠি লেখার গুরুত্ব কিছুটা কমেছে। এখন মোবাইল ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রিয়জনকে শুধু দেখাই যায় না, বরং বহু গুরুত্বপূর্ণ কাজও নিজের ঘরে বসে সেরে ফেলা যাচ্ছে।

বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ইন্টারনেট চালু হয় ১৯৯৩ সালে। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, চালু হওয়ার প্রায় তিন বছর পর, অর্থাৎ ১৯৯৬ সালে ইন্টারনেট সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। আর দেশের প্রথম সাইবার ক্যাফেটি চালু হয় ১৯৯৯ সালে, ঢাকার বনানীতে।

আমাদের দেশে একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে মোবাইলে কথা বলার পাশাপাশি ইন্টারনেট ব্যবহার ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হতে শুরু করে। মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহারের সেই শুরুর দিকের কথা কারও কি মনে আছে? একটি ওয়েবসাইটে ঢুকতে কত সময় লাগত কিংবা ইউটিউবের একটি ছোট ভিডিও চালাতে কী পরিমাণ ধৈর্য নিয়ে বসে থাকতে হতো! লোডিং হচ্ছে তো হচ্ছেই।

আর আজকে ২০১৮ সালে এসে আমরা চোখের পলকেই একটি ওয়েবসাইটে ঢুকে প্রয়োজনীয় তথ্য নিতে পারছি। কয়েক শ মেগাবাইটের ফাইল কয়েক মিনিটেই ডাউনলোড হয়ে যাচ্ছে। এ সবই কিন্তু সম্ভব হয়েছে উচ্চগতির ইন্টারনেট প্রযুক্তির কল্যাণে। জেনে নিই কীভাবে এই পরিবর্তনটা এল।

১৯৮০ সালে প্রথম বেতার টেলিফোন প্রযুক্তিব্যবস্থাকে ১জি বলে ডাকা শুরু হয়। ১৯৯১ সালে বাণিজ্যিকভাবে টুজি আসার আগে ছিল পুরোটাই এনালগ পদ্ধতির। ১জি (1G) এবং টু-জির মধ্যে প্রধান পার্থক্য হল, যে রেডিও সংকেতে ১জি (1G) নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হতো, তা এনালগ আর একই তরঙ্গ সংকেত ডিজিটাল রূপে টু-জি নেটওয়ার্কে ব্যবহার করা হয়। টু-জি প্রযুক্তিতে কথা বলার পাশাপাশি খুদে বার্তা পাঠানোর সুবিধা ছিল। এর প্রধান সুবিধা হলো ফোনে নিরাপদে কথা বলার মতোই এনক্রিপশন করা। এর প্রায় ১০ বছর পর প্রতি সেকেন্ডে কমপক্ষে ২০০ কিলোবিট হারে তথ্য আদান-প্রদান করার প্রযুক্তি উন্মুক্ত হয়। এটিই মূলত থ্রি-জি প্রযুক্তি। দ্রুতগতির ইন্টারনেট, ভিডিও কলসহ মোবাইলে টিভি দেখার সুবিধা এনে দিয়েছিল এই প্রযুক্তি। টু-জির সঙ্গে থ্রি-জির মূল পার্থক্য হচ্ছে এদের বেতার কম্পাঙ্ক এক নয়। ৮০০-৯০০ মেগাহার্জ স্পেকটার্ম ব্যান্ডে টু-জি প্রযুক্তি ব্যবহার করা হতো। থ্রি-জির জন্য প্রয়োজন ১৮০০-২৪০০ মেগাহার্জ স্পেকটার্মের ব্যান্ড। মোবাইল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো এই নির্দিষ্ট পরিমাণ বেতার ব্যান্ড কিনে বিভিন্ন দেশে সেবা দিয়ে আসছে।

থ্রি-জি উন্মোচন হওয়ার অল্প সময়ের ব্যবধানে ২০০৮ সালের মার্চে আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়ন আইইউটি ফোর-জির ধারণা দেয়। তারা বলে, উচ্চ মোবিলিটি যোগাযোগের জন্য প্রতি সেকেন্ডে ১০০ মেগাবিট এবং নিম্ন মোবিলিটি যোগাযোগের জন্য প্রতি সেকেন্ডে ১ গিগাবিট গতি থাকতে হবে। এর চেয়ে কম গতি হলে সেটিকে আইইউটির নীতিমালা অনুযায়ী ফোর-জি বলা যাবে না। বলা যেতে পারে, ফোর-জি হচ্ছে তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রি-জি) টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তির উত্তরসূরি। প্রযুক্তিটি অনেক উচ্চকম্পাঙ্কের ব্যান্ডে চলে। এটা প্রায় ২-৮ গিগাহার্জের সমান। সেকেন্ডে ২ মেগাবাইট থেকে ৪০ মেগাবাইট পর্যন্ত গতিতে তথ্য আদান-প্রদান করা যাবে এই প্রযুক্তির সাহায্যে। তাত্ত্বিকভাবে এর ডাউনলোড গতি ১০০ এমবিপিএস থেকে ১ জিবিপিএস পর্যন্ত হতে পারে। একজন থ্রি-জি ব্যবহারকারী যদি ইন্টারনেটে সেকেন্ডে ১৪ মেগাবাইট গতি পান, তাহলে তিনি ফোর-জিতে ১ জিবিপিএস পর্যন্ত গতি পাবেন। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ১ জিবির একটা ফাইল ডাউনলোড করতে থ্রি-জি নেটওয়ার্কে যেখানে ২০ মিনিট লেগেছে, ফোর-জিতে সেটি ৫ মিনিটেই সম্ভব হবে। এ সবকিছুই কিন্তু তাত্ত্বিক বিশ্লেষণ, ইন্টারনেটের গতি আরও বিভিন্ন ফ্যাক্টরের ওপর নির্ভর করে। ধারণা করা যায়, ফোর-জিতে আরও ভালোভাবে মোবাইল ওয়েব সেবা, আইপি টেলিফোন, গেমিং সেবা, এইচডিটিভি, এইচডি মোবাইল টিভি, ত্রিমাত্রিক টেলিভিশন (থ্রিডি টিভি) এবং ক্লাউড কম্পিউটিং সেবা পাব। আর সবচেয়ে মজার তথ্য, ২০১৯ সালের মধ্যে চাঁদে ফোর-জি মোবাইল নেটওয়ার্ক স্থাপন করা হবে। মোবাইল কোম্পানি ভোডাফোন, নকিয়া ও গাড়ি নির্মাতা কোম্পানি অডি মিলে এই অভিযান পরিচালনা করছে। খুশির খবর হলো, বাংলাদেশও গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ফোর-জি যোগাযোগব্যবস্থায় প্রবেশ করেছে। এখন সবকিছু চলতে থাকুক দ্রুতগতিতে।

লেখক: শিক্ষার্থী, ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

সূত্র: ফোন এরিনা ডট কম

*লেখাটি ২০১৮ সালে বিজ্ঞানচিন্তার ফেব্রুয়ারি সংখ্যায় প্রকাশিত

11
চাকরির জন্য আবেদনপ্রক্রিয়া থেকেই শুরু হয় কাঙ্ক্ষিত পদের জন্য নিজেকে যোগ্য প্রমাণ করার চেষ্টা। নিজের যোগ্যতা, দক্ষতা, কর্মনৈপুণ্য, সক্ষমতা ও অভিজ্ঞতার পরিচয় দিতে হয় প্রতিটি ধাপেই। জীবনবৃত্তান্ত আগে থেকে তৈরি করা থাকলেও কাঙ্ক্ষিত পদটির উপযোগী করেই তা হালনাগাদ করে নিতে হয়। কর্মনৈপুণ্যসংক্রান্ত জ্ঞান এবং সাধারণ জ্ঞান যেমন লিখিত পরীক্ষার জন্য জরুরি, তেমনি সাক্ষাৎকার পর্বেও এগুলো কাজে লাগতে পারে। সাক্ষাৎকার পর্বটি নিয়োগকর্তার সঙ্গে আপনার প্রথম আনুষ্ঠানিক আলাপের সুযোগ। তাই ভীষণ গুরুত্বপূর্ণও বটে। আর চাকরির মৌখিক সাক্ষাৎকারে আপনার পোশাক–আশাক থেকে শুরু করে আচার–আচরণ—সব বিষয়েই সচেতন থাকতে হয়। সাক্ষাৎকার পর্বে হতে হবে আত্মবিশ্বাসী। যে প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেছেন, সেটি সম্পর্কে ধারণা নিয়ে নিন বিস্তারিতভাবে।

খেয়াল রাখুন

• আনুষ্ঠানিক পোশাক ও অনুষঙ্গ বেছে নিন চাকরির সাক্ষাৎকারের জন্য। ইস্তিরি করা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, পরিপাটি পোশাকে যাবেন। আপনার লুক যেন ‘আনুষ্ঠানিক’ হয়।

• সাক্ষাৎকারের নির্ধারিত সময়ের আগেই পৌঁছে প্রয়োজনে সেখানে পুনরায় সতেজ হয়ে নিন। জুতার উপরিভাগে রাস্তার কাদা ছিটে এলে মুছে ফেলুন।

• সাক্ষাৎকার দিতে বাসা থেকে বের হওয়ার সময় সঙ্গে রাখুন প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র। এ ছাড়া পানি, টিস্যু পেপার, চিরুনি রাখা ভালো। তবে সাক্ষাৎকার কক্ষে এসব নিয়ে গিয়ে বোঝা বাড়াবেন না।

সাক্ষাৎকার কক্ষে

• ডাক পড়লে অনুমতি নিয়ে ঢুকবেন।

• ভেতরে ঢুকে সবাইকে শুভেচ্ছা জানাবেন, সালাম দেবেন।

• ইতিবাচক দেহভঙ্গি বজায় রাখুন।

• ভদ্রতা বজায় রাখুন।

• অনুমতি নিয়ে ঋজু, সাবলীল ভঙ্গিতে বসবেন।

• সবার চোখে চোখ রেখে আত্মবিশ্বাসী ভঙ্গিতে কথা বলবেন। হালকা হাসিও থাকুক মুখে।

• সবশেষে ধন্যবাদ দিয়ে বের হয়ে আসবেন।

আলাপ-আলোচনায়

• প্রতিকূল পরিস্থিতিতে কাজের অভিজ্ঞতা কিংবা অভিজ্ঞতা না থাকলে ওই পরিস্থিতিতে আপনি কী করতেন, তা বলতে হতে পারে। বুদ্ধিমত্তার প্রকাশ চাই এসব ক্ষেত্রে।

• আগে কোথাও চাকরি না করলেও নিজেকে অনভিজ্ঞ হিসেবে উপস্থাপন করবেন না। ছাত্রাবস্থায় করা খণ্ডকালীন চাকরি, শিক্ষানবিশি, প্রশিক্ষণ কিংবা স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজের অভিজ্ঞতা সামনে আনতে পারেন। এসব তথ্য জীবনবৃত্তান্তেও যোগ করে রাখুন আগেই।

• নিজের সম্পর্কে বলতে হলে পারিবারিক তথ্যে বেশি গুরুত্ব দেবেন না, বরং নিজের নাম বলার পরেই কর্মনৈপুণ্যসংক্রান্ত তথ্যে নিজেকে তুলে ধরুন। পেশাগত দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাজীবন সম্পর্কে তথ্য দিতে পারেন।

• প্রশ্ন করার সুযোগ পেলে বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্ন করুন। সেখানে কাজ করলে কী ধরনের চ্যালেঞ্জ নিতে হতে পারে বা কত দিনের মধ্যে যোগ দিতে হতে পারে, সে বিষয়ে প্রশ্ন করতে পারেন। বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুবিধা নিয়েও (নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বলা না থাকলে) প্রশ্ন করতে পারেন।

যা করবেন না

• খুব জাঁকজমক পোশাক পরবেন না।

• পোশাকের হাতা গুটিয়ে রাখবেন না।

• ঝুঁকে বা হেলান দিয়ে বসবেন না।

• মিথ্যা বা ভুল তথ্য দেবেন না।

• চিন্তিত বা ভয় পাওয়া ভাব প্রকাশ করবেন না।

(অনুলিখিত)


Source: https://www.prothomalo.com/feature/adhuna/%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A7%8E%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A7%80-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%95%E0%A7%80-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%A8%E0%A6%BE

12
কোভিড আর ডেঙ্গু হাতে হাত রেখে তাণ্ডব চালাচ্ছে। তাই করোনার সময়ে যদি তীব্র জ্বর, মাথাব্যথায় আক্রান্ত হন, ডেঙ্গুর কথা ভুলে যাবেন না। বর্ষায় ঢাকাসহ বড় বড় শহরের জলাবদ্ধতায় হু হু করে ছড়িয়ে পড়ছে ডেঙ্গু। কেননা, জমাটবদ্ধ পানি এডিস মশার বংশবিস্তারের জন্য সেরা জায়গা। জেনে নেওয়া যাক করোনা আর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণগুলোর মিল–অমিল।

* করোনা আর ডেঙ্গু—দুটিই মূলত ভাইরাসজনিত জ্বর (ভাইরাল ফিভার)। দেড় বছর ধরে চলছে করোনাকাল। আর বর্ষা মৌসুমে বাড়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ। আর এবারের বর্ষায় যেন ডেঙ্গু আর করোনাভাইরাসে আক্রান্তের প্রতিযোগিতা চলছে। প্রতিদিন করোনায় আর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে শত শত মানুষ। আপনার জ্বর, মাথাব্যথা, শরীরে ব্যথার মতো লক্ষণ থাকলে আপনার করোনা বা ডেঙ্গু অথবা করোনা ও ডেঙ্গু দুটিই হতে পারে।






* কোভিড ও ডেঙ্গু—দুই ধরনের সংক্রমণেই জ্বর থাকবে। জ্বরের মাত্রার তারতম্য হতে পারে। জ্বরের সঙ্গে মাথাব্যথা, শরীরব্যথা, গা ম্যাজম্যাজ করা, ক্ষুধামান্দ্যর মতো প্রাথমিক উপসর্গ থাকে দুটিতেই। করোনা বারবার ধরন পাল্টাচ্ছে, তাই উপসর্গও বদলে যাচ্ছে। কখনো তীব্র অরুচি আর স্বাদহীনতা প্রকট হয়ে দেখা দেয়। কখনো উপসর্গ বলতে কেবল ডায়রিয়া আর জ্বর। আবার কখনোবা কেবল মাথাব্যথা। করোনায় অনেকে ঘ্রাণ পায় না। ডেঙ্গু জ্বরে ঘ্রাণ থাকবে।

* তবে করোনায় এখনো জ্বরের সঙ্গে শরীরে ফুসকুড়ি আর দাঁত-নাক বা অন্য জায়গা থেকে রক্তক্ষরণ হয়নি। রক্তে প্লাটিলেটের মাত্রা কমে যেতে পারে। এটাও কেবল ডেঙ্গুতেই হয়। আবার দ্রুত অক্সিজেনের লেভেল কমে যাওয়া, শ্বাসকষ্ট হওয়া করোনার প্রকট লক্ষণগুলোর মধ্যে অন্যতম। ডেঙ্গুতে এসব লক্ষণ বিরল। হয় না বললেই চলে।
 * করোনার ভ্যাক্সিন থাকলেও ডেঙ্গুর কোনো ভ্যাকসিন নেই। যেহেতু ডেঙ্গু ভাইরাস চার ধরনের। তাই একই সঙ্গে চারটি ভাইরাসের প্রতিরোধে কাজ করে, এমন ভ্যাকসিন এখনো আবিষ্কৃত হয়নি।

* সাধারণ লক্ষণগুলো থাকলেই সবার আগে করোনা আর ডেঙ্গু দুটিরই পরীক্ষা করাতে হবে। চার ধরনের ডেঙ্গু ভাইরাসে মূলত দুই ধরনের জ্বর হয়। ক্লিনিক্যাল ডেঙ্গু জ্বর ও হেমোরেজিক ফিভার। ডেঙ্গু জ্বর অন্যান্য ভাইরাল ফিভারের মতো নিজে থেকেই সাত দিনের মধ্যে সেরে যায়। তবে হেমোরেজিক ডেঙ্গু জ্বর ভয়াবহ হতে পারে। শরীরের তাপমাত্রা হঠাৎ করে ১০৪ থেকে ১০৬ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে। চরম বিষাদগ্রস্ততা দেখা দিতে পারে। অরুচি, বমি বমি ভাব এবং ত্বক লাল হতে পারে। এই জ্বর ৩ থেকে ৭ দিন স্থায়ী হয়। শরীরের চামড়ার নিচে রক্তক্ষরণ হতে পারে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ত্বকে রক্তক্ষরণজনিত উপসর্গ দেখা যায়।



* ডেঙ্গুর নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা না থাকলেও এ সময় প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা, বিশ্রাম নেওয়া এবং প্রচুর তরল খাবার খাওয়া উচিত। জ্বর কমানোর জন্য কোনোমতেই প্যারাসিটামল ছাড়া অন্য ওষুধ খাওয়া যাবে না। জ্বরের সঙ্গে রক্তক্ষরণের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে। জ্বর কমানোর জন্য ভেজা কাপড়ে বারবার শরীর মুছে দিতে হবে।

নানান উপায়ে এড়িয়ে চলুন ডেঙ্গুকে
গোদের ওপর বিষফোড়া বলে যে একটা বাগধারা আছে। এমন সময়কে ব্যাখ্যা করার জন্য সেটি একদম ঠিকঠাক। একে তো চলছে মহামারিকাল, বিধিনিষেধ।  প্রায় প্রতিদিনই ঢাকায় গড়ে দেড় শ মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হচ্ছে বিভিন্ন হাসপাতালে। বিশেষ করে শহরের দিকে বৃষ্টির সঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপ বেড়েই চলেছে। এখন তাই করোনাভাইরাসের মোকাবিলা করার সঙ্গে সঙ্গে লড়তে হবে ডেঙ্গু থেকে বাঁচার জন্যও। জেনে নেওয়া যাক ডেঙ্গু এড়িয়ে চলার সহজ কিছু উপায়।

ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে হলে:
১. ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে পরিষ্কার–পরিচ্ছন্নতার কোনো বিকল্প নেই। নিজের আবাসস্থল, কর্মস্থান পরিষ্কার–পরিচ্ছন্ন রাখুন। মহামারিকালের বিধিনিষেধে অনেকেই ঘরে বারান্দায় বাগান করেছেন। সেই সব টব বা বোতলের জমা পানি ডেঙ্গুর প্রিয় আবাসস্থল। তাই দুই দিন পরপর সব জমা পানি ফেলে দিন।


 ২. বাথরুমের বালতি, গামলা, মগেও যেন পানি জমে না থাকে, সেদিকে লক্ষ রাখুন। বাসা বন্ধ রেখে অন্য কোথাও গেলে বালতি, গামলা, জগ, মগ, টব, ডাবের খোল, ফেলে রাখা টায়ার, যেকোনো পরিত্যক্ত টায়ারে যেন পানি জমা না থাকে, সেদিকে খেয়াল রাখুন। সেগুলো উপুড় করে রেখে যেতে পারেন। তাতে অন্যান্য ময়লাও ঢুকবে না। অ্যাকুরিয়াম, ফ্রিজ, এয়ার কন্ডিশনারের নিচে, মুখ খোলা পানির ট্যাংকে যেন পানি জমে না থাকে, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।



৩. নিজের অ্যাপার্টমেন্টে, এলাকায় বা পাড়ায় কমিটি করে নিয়মিত পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালাতে হবে। মশার ওষুধ ও লার্ভিসাইড ছিটাতে হবে।


 ৪. সূর্যোদয়ের পরের আধা ঘণ্টার আর সন্ধ্যায় সূর্যাস্তের আগের আধা ঘণ্টা, এই দুই সময়ে এডিস মশা খাবারের জন্য সবচেয়ে বেশি সক্রিয় হয়। তাই এই দুই সময়ে বেশি সাবধানে থাকতে হবে।


 ৫. ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। রোগীকে সব সময় মশারির মধ্যে রাখা ভালো। কেননা, এই রোগীকে যদি সাধারণ মশাও কামড়ায়, সে–ও ডেঙ্গুর বাহক হয়ে যাবে। ফলে ওই মশা আবার যাকেই কামড়াবে, সে–ই ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হবে।


 ৬. মশার প্রথম টার্গেট হলো হাত আর পা। তাই হাত পা ঢেকে রাখে, এমন পোশাক পরুন। বাচ্চাদের যথাসম্ভব লম্বা জামা–কাপড় পরাতে হবে। ফুলহাতা শার্ট, গেঞ্জি বা জামা, ফুলপ্যান্ট, পায়জামা পরাতে হবে।  শরীরের খোলা জায়গায় মশা প্রতিরোধক ক্রিম লাগানো যেতে পারে।

৭.  ময়লা রাখার পাত্র প্রতিদিন পরিষ্কার করুন। সেটিও নাগরিক জীবনে এডিস মশার আরেকটি প্রিয় স্থান। ব্যবহারের পর ময়লার পাত্রের মুখ ঢেকে রাখতে হবে। এ ছাড়া ঘরের কোণা, ছায়াময় স্থান, একটু স্যাঁতসেঁতে জায়গা, রান্নাঘরের বেসিন বা বাথরুম নিয়মিত পরিষ্কার রাখুন।


 ৮. বর্ষার মৌসুমে দরজা-জানালা বন্ধ রাখতে হবে। আর জানালা খোলা রাখলেও নেট দিয়ে রাখতে ভুলবেন না। এ ছাড়া ডেঙ্গুবাহী এডিশ মশা থেকে বাঁচতে দিনে ও রাতে সব সময় ডেঙ্গু প্রতিরোধে কার্যকরী মশার কয়েল কিংবা স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন।

Source: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%A1%E0%A7%87%E0%A6%99%E0%A7%8D%E0%A6%97%E0%A7%81-%E0%A6%9C%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%B0-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A6%9C%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A6%95%E0%A7%80%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%9D%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A8

13


পেঁপে আমাদের অতিপরিচিত একটি ফল। এর একটি বিশেষ দিক হলো এটি একাধারে ফল ও সবজি হিসেবে খাওয়া হয়। শুধু স্বাদের দিক থেকেই নয়, অসাধারণ পুষ্টিগুণের কারণেও পেঁপে পৃথিবীজুড়ে বেশ জনপ্রিয়। পেঁপেতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফাইবার বা আঁশ, পটাশিয়াম, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৯ এবং প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। তা ছাড়া অল্প পরিমাণে রয়েছে ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ই, ভিটামিন কে এবং কয়েক ধরনের ভিটামিন বি। এখন কথা হলো পেঁপে কীভাবে খেলে বেশি ভালো হবে? কাঁচা নাকি পাকা?

কাঁচা পেঁপে
কাঁচা পেঁপে আমাদের দেশে সাধারণত সবজি হিসেবে ব্যবহার করা হয়। কাঁচা পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, আছে ভিটামিন, খনিজ এবং উদ্ভিজ্জ ফ্যাট। তা ছাড়া কাঁচা অবস্থায় এতে সাইমোপ্যাপেইন এবং প্যাপেইন এনজাইম থাকে। এই দুটি এনজাইম প্রোটিন ফ্যাট এবং কার্বোহাইড্রেটকে ভাঙতে সাহায্য করে। কাঁচা পেঁপে কেন খাবেন?

পেট পরিষ্কার রাখতে
কাঁচা পেঁপের আঁশ আমাদের হজম এবং পরিপাক প্রক্রিয়াকে সহজ করে। এতে করে মলাশয়, অন্ত্র এবং পরিপাক নালি থেকে বর্জ্যপদার্থ সহজে বের হয়ে যেতে পারে। কাঁচা পেঁপে বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য, পাইলস, অ্যাসিডিটির মতো সমস্যাগুলোকে প্রতিহত করতে সাহায্য করে।

ত্বককে রাখে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল
কাঁচা পেঁপে যেহেতু দেহের ভেতরকার দূষিত পদার্থ নিষ্কাশনে সাহায্য করে তাই এটি আমাদের ত্বকের স্বাস্থ্যও ভালো রাখে। যাদের ব্রণের সমস্যা আছে তাদের নিয়মিত কাঁচা পেঁপে খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে।

কোষ পুনর্গঠন
কাঁচা পেঁপেতে প্রোটিন, ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট এবং উপকারী এনজাইম থাকায় এটি নানাভাবে কোষের পুনর্গঠনে সাহায্য করে। ডায়েটে কাঁচা পেঁপে রাখলে তা কোষের প্রদাহ রোধ করে কোষের প্রতিরক্ষায় সাহায্য করতে পারে।

কীভাবে খাবেন?
কাঁচা পেঁপে এমনিতে টুকরো করে কাঁচা চিবিয়ে, সালাদের সঙ্গে মিশিয়ে বা তরকারি হিসেবে রান্না করে খেতে পারেন।

পাকা পেঁপে
পাকা পেঁপেতে রয়েছে ভিটামিন, ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টসহ নানা রকমের পুষ্টি উপাদান, যা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত জরুরি। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পাকা পেঁপে আপনার শারীরিক সুস্থতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ক্যানসার প্রতিরোধে
পাকা পেঁপেতে উপস্থিত ফ্লেভানয়েড, বিটা ক্যারোটিন, লুটেইন, ক্যারাটিনয়েডসহ আরও বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যানসার কোষ প্রতিরোধে সাহায্য করে। কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, এসব অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফুসফুস এবং অন্যান্য ক্যানসারে আক্রান্ত হবার আশঙ্কা কমায়।

চোখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে

গবেষণা বলছে, নিয়মিত পাকা পেঁপে খেতে চোখের বয়সজনিত ত্রুটি এবং ক্ষতিগ্রস্ততার ঝুঁকি অনেকাংশেই কমিয়ে দেয়। কেননা পাকা পেঁপেতে আছে বিটা ক্যারোটিন এবং ভিটামিন এ, যা আমাদের চোখের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য অত্যাবশ্যকীয় দুটি উপাদান।

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ায়
পাকা পেঁপেতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন সি। এই উপাদানগুলো আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধি এবং বিভিন্ন রোগব্যাধির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলে। পাকা পেঁপে খুবই স্বাস্থ্যকর একটি ফল। পরিবারের সুস্থতায় তাই সকালের নাশতায় রাখতে পারেন কয়েক টুকরো পাকা পেঁপে।

হৃৎপিণ্ড ভালো রাখে
পাকা পেঁপেতে থাকা ভিটামিন এ, সি এবং ই–এর মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। মানবদেহের কোলেস্টেরল অক্সিডাইজড হয়ে গেলে সেটা ব্লকেজ তৈরি করে; ফলে হৃৎপিণ্ডের নানা অসুখ দেখা দেয়। পেঁপের অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট কোলেস্টেরলের অক্সিডাইজড হওয়ার প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করে, ফলে হৃৎপিণ্ড নানা ধরনের জটিলতার হাত থেকে রক্ষা পায়।

কীভাবে খাবেন?
পাকা পেঁপে টুকরো করে খাওয়া যায়। তা ছাড়া ফ্রুট সালাদ বানিয়ে বা জুস করেও খেতে পারেন। তবে যেভাবেই খান না কেন অতিরিক্ত মিষ্টি না যোগ করাই ভালো। কেননা পাকা পেঁপে এমনিতেই কিছুটা মিষ্টি হয়ে থাকে।

পেঁপে হোক কাঁচা কিংবা পাকা দুই-ই আমাদের শরীরের জন্য দারুণ উপকারী। পরিবেশনের বেশিক্ষণ আগে পেঁপে কেটে রাখা উচিত নয়, এতে পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়ে যায়। গর্ভাবস্থায় পেঁপে খাওয়ার ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত বলে ডাক্তাররা মনে করেন। এ ছাড়া আপনার যদি বিশেষ কোনো শারীরিক জটিলতা থাকে ডায়েটে পেঁপে অন্তর্ভুক্ত করার আগে চিকিৎসকের সঙ্গে আলোচনা করে নিন।


Source: https://www.prothomalo.com/life/nutrition/%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%9A%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%81%E0%A6%AA%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%81%E0%A6%AA%E0%A7%87

14
করোনার প্রকোপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জীবনও বদলে গেছে অনেকটাই। আবার শুরু লকডাউনের জীবন। যেখানে রোজ সকালে অফিসে যাওয়ার তাড়া নেই। বরং অফিসই চলে এসেছে ঘরের মধ্যে। সময়মতো ল্যাপটপ খুলে বসে পড়লেই হলো। সারা দিনের যাবতীয় কাজ থেকে শুরু করে অফিস মিটিং, কনফারেন্স—সবই চলছে বাড়িতে বসেই। সমস্যা হলো অনেক সময়ই অফিসের আবহটা ঠিক বাসার মধ্যে পুরোপুরি আনা সম্ভব হয় না। অনেকে বাড়ির পোশাকেই অফিসের কাজ করছেন, এমনকি যেমন–তেমনভাবে বসে পড়ছেন ভিডিও মিটিংয়ে। বাড়ির পোশাকেই ভিডিও মিটিংয়ে বসা যেমন পেশাদারত্বের পরিচয় নয়, তেমনি খেয়াল রাখতে হবে কিছু ম্যানার বা আদবকেতার দিকেও।

নিশ্চয়ই ভাবছেন, বাড়িতে বসে কাজ হচ্ছে যখন, এত ফরমালিটি মেনে লাভ কী। এমনিতে বাড়ির পোশাকে অফিসের কাজ করলে তেমন ক্ষতি নেই, কিন্তু ভিডিও মিটিংয়ের সময় বাড়তি সতর্ক আপনাকে হতেই হবে।

বাড়ির পোশাক যতই আরামদায়ক হোক না কেন অফিসের অনলাইন মিটিংয়ে একটু পরিবর্তন আনা জরুরি। অফিসের ভিডিও মিটিংয়ে বসার আগে নিজেকে একটু পরিপাটি করে নিন। সালোয়ার–কুর্তা, স্কার্ট-টপ পরে বসতে পারেন। মোটামুটি আপনি যে ধরনের পোশাকে অফিস যান, সেই ধারাটা ধরে রাখলেই যথেষ্ট। অনেক সময় মেকআপ করার প্রয়োজন নেই। শুধু চুলটা আঁচড়ে নিন ভালোভাবে। আবার কখনো কখনো প্রয়োজন অনুযায়ী হালকা মেকআপ করা যেতে পারে। যেমন মুখে ময়েশ্চারাইজার মেখে নিন, হালকা কমপ্যাক্ট বুলিয়ে নিতে পারেন তার ওপরে। ঠোঁটে দিন লিপগ্লস।

এ তো গেল পোশাক আর মেকআপের কথা। এবার আসা যাক জায়গা নির্বাচনের বিষয়ে। এমন জায়গায় বসে ভিডিও মিটিং করুন, যেখানে বাড়ির লোকজন আসবেন না। প্রয়োজনে আগে থেকেই তাদের বলে রাখতে হবে। জায়গাটায় যেন যথেষ্ট আলো থাকে। বিশেষ খেয়াল রাখুন ব্যাকগ্রাউন্ডের দিকে। অনেকেরই বাড়িতে জিনিসপত্র এলোমেলো থাকে, অগোছালো পরিবেশ দেখা যায় বাড়িজুড়ে। এ ক্ষেত্রে ব্যাকগ্রাউন্ডে ঘরের যে অংশটুকু দেখা যাবে। অন্তত সেই অংশটি একটু গুছিয়ে নিতে ভুলবেন না। অপ্রয়োজনীয় আজেবাজে জিনিস সরিয়ে দিন ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে।

ভিডিও মিটিংয়ে কানেক্টিভিটির সমস্যা হতে পারে, আরও নানা যান্ত্রিক সমস্যা হতে পারে। একেবারে শেষ মুহূর্তে লগইন করলে হয়তো এ ধরনের যান্ত্রিক ত্রুটি সামলানো সম্ভব না–ও হতে পারে। তাই মিটিং শুরুর অন্তত আধঘণ্টা আগে লগইন করে অপেক্ষা করুন। অফিসের নির্ধারিত সময়সূচি মেনে চলা খুবই জরুরি। অফিস টাইম ৯টায় শুরু হলে ঠিক সময়েই কাজ শুরু করতে হবে। অফিস টাইমের আগেই গোসল ও সকালের নাশতা সেরে নিতে হবে। কারণ, বাড়িতে বসে কাজ করা মানেই ঘরের কাজ ও অফিস দুটোই একসঙ্গে নয়। অফিস শিডিউল অনুযায়ী কাজ করতে হবে।

ভিডিও মিটিংয়ে বসে দাঁতে নখ কাটা, গা এলিয়ে বসে থাকা একেবারেই উচিত নয়। এ ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে, সশরীর অফিস মিটিংয়ে যেভাবে উপস্থিত থাকতে হয়, ঠিক একইভাবে অনলাইন মিটিংয়ে উপস্থিত থাকা উচিত।

খুব প্রয়োজন না হলে চেয়ার ছেড়ে উঠে যাওয়াও ঠিক নয়। মিটিং চলাকালে চা, কফি বা পানি ছাড়া কিছু খাওয়া উচিত নয়। কোনো কিছুতে বিরক্তি এলে সেটা যেন চেহারায় ছাপ না থাকে। বিশেষ করে ভ্রু কুঁচকে থাকে কি না খেয়াল করুন। কম্পিউটারের ক্যামেরা আর মাইক্রোফোন ঠিকমতো কাজ করছে কি না সেটাও আগে থেকে দেখে নিতে হবে। হাতের কাছে পানির বোতল বা গ্লাস রাখুন। নোটবই আর কলম নিয়ে বসুন। আর হ্যাঁ, মোবাইল ফোন অবশ্যই সাইলেন্ট রাখবেন এ ক্ষেত্রেও।

মিটিং চলাকালে হাঁচি যেন না আসে সেদিকটায় খেয়াল রাখুন। অন্য যেকোনো সময়ের অফিস মিটিংয়ে এ বিষয়গুলো হয়তো হলেও কেউ খেয়াল করত না। কিন্তু জুম মিটিংয়ে ভ্রু কুঁচকে থাকা, হাঁচি দেওয়া সবার দৃষ্টিতে চলে আসবে সহজেই, যা মিটিংয়ে আপনার ইমেজে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। কিছু ম্যানার মেনে চললেই দেখবেন সতেজ–সুন্দরভাবে কাটবে হোম অফিসের সময়।

জরুরি অবস্থা চলে গেলে বা শিথিল হলে আগের মতোই অফিসে গিয়ে কাজ করতে পারবেন। তবে তার আগে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলের অনুমতিক্রমে অফিসে যাওয়ার জন্য মানসিকভাবে তৈরি থাকতে হবে। পৃথিবী সুস্থ হয়ে উঠুক। কাজের পরিবেশ ফিরে আসুক—এ কামনা সবারই।

15
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই আমাদের ক্রমশ ধরে ফেলছে। এআই অ্যালগরিদম এখন আমাদের হরহামেশাই দাবা, পোকার কিংবা মাল্টিপ্লেয়ার ভিডিও গেমে হারিয়ে দিচ্ছে। মানুষের এমন সব ছবি তৈরি করছে, যা প্রকৃত ছবির সঙ্গে পার্থক্য বের করা কঠিন। সংবাদ লেখার পাশাপাশি এআই প্রোগ্রাম এখন ভালোবাসার গল্প লিখছে। অনেক তরুণ চালকের চেয়ে ভালো গাড়ি চালাতে পারছে। এআই যেভাবে এগিয়ে চলেছে, তাতে মানুষের জন্য যথেষ্ট আশঙ্কার কারণ রয়েছে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন উল্টোটা। তাঁদের মতে, এআইয়ের পক্ষে সাধারণ মানুষের সমকক্ষ হয়ে ওঠা এখনই সম্ভব নয়। এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে নিউইয়র্ক টাইমস।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এখন পর্যন্ত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিখুঁত হয়ে ওঠেনি। এর উদাহরণ হিসেবে ‘ওবোট’ নামের একটি প্রোগ্রামের কথা বলা যায়। সায়েন্স টাইমসে সাংবাদিক ক্যারেন ব্রাউন ওবোট সম্পর্কে লিখেছেন, এআই চালিত স্মার্টফোন অ্যাপ ওবোটের লক্ষ্য হচ্ছে কম খরচে কাউন্সেলিং সেবা দেওয়া। সংলাপ ব্যবহার করে ব্যবহারকারীকে মানসিক আচরণের সাধারণ পদ্ধতিগুলো শেখাতে পারে এটি। তবে অনেক মনোবিদ সন্দিগ্ধ যে মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগে যে আন্তসংযোগ ঘটে, সে ধরনের অনুভূতি কি এআই প্রোগ্রাম কখনো দিতে পারে।

শিকাগোভিত্তিক থেরাপিস্ট লিন্ডা মাইকেলস বলেন, এআইভিত্তিক অ্যালগরিদম ব্যবহার করে তৈরি করা অ্যাপগুলোর এখনো অনেক ঘাটতি রয়েছে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় থেরাপির কাজ এ ধরনের অ্যাপে সমাধান করা যায় না। মানুষের মধ্যে যে সম্পর্ক তৈরি হয়, তা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা তৈরি করতে পারে না। গবেষণায় দেখা গেছে, মানুষ সাধারণত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার কোনো রোবটের সঙ্গে সহানুভূতিশীল আচরণ করে না। রোবটের পক্ষ থেকে মানুষের মধ্যে সেই অনুভূতি তৈরির পথও নেই। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, কোনো মানুষকে এমন একটি পরিস্থিতিতে রাখা হলো যে তিনি উপকারী এআইকে সহযোগিতা করতে পারেন। কিন্তু দেখা যাবে, তিনি তা ঠিকমতো করছেন না।

জার্মানির মিউনিখের লুডভিগ ম্যাক্সিমিলান বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের অধ্যাপক অফেলিয়া ডেরয় বলেন, ‘সাধারণত মানুষ ও রোবটের পারস্পরিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় কিছু একটার অভাব দেখা দেয়। আমরা মূলত সম্পূর্ণ অপরিচিত কোনো ব্যক্তির সঙ্গেও এআইয়ের তুলনায় স্বচ্ছন্দ বোধ করি।’ কেন এমনটি ঘটে, তা খতিয়ে দেখতে অফেলিয়া ও তাঁর নিউরোসায়েন্টিস্ট সহকর্মীরা মিলে একটি গবেষণা পরিচালনা করেন। এখানে গবেষকেরা ব্যক্তির সঙ্গে অপরিচিতের জুটি গড়েন।

কখনো মানুষের সঙ্গে অপরিচিত কোনো মানুষ, আবার মানুষের সঙ্গে রোবটের জুটি গড়া হয়। এরপর প্রতিটি জুটিকে মুরগি ও হরিণ শিকারের মতো কিছু খেলা খেলতে দেওয়া হয়। এতে তাঁরা দেখেন, সাধারণত এআইয়ের সঙ্গে আস্থার ঘাটতি থাকে। কারণ, এআইচালিত রোবট কেবল যুক্তি মেনে চলে ও অনুভূতিহীন। এটা নিজের যুক্তির বাইরে চিন্তা করতে অক্ষম এবং প্রয়োজনে সহযোগিতা করতে চায় না। তাই মানুষের পক্ষেও এআইকে এড়িয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া রোবট সহযোগিতার জন্য আগ্রহী থাকলেও মানুষ রোবটের সঙ্গে সহযোগিতার জন্য ততটা আগ্রহী হয় না।

গবেষক অফেলিয়া বলেন, এআই সহযোগিতা মনোভাবপূর্ণ হলেও অনেকে এর সঙ্গে নির্দ্বিধায় বিশ্বাসভঙ্গ করে। এর জন্য কোনো অপরাধ বোধেও ভোগে না, যেটা তারা মানুষের ক্ষেত্রে করে। ‘আপনি রোবটে উপেক্ষা করতে পারেন এবং তাতে আপনার মধ্যে শর্ত লঙ্ঘনের কোনো অনুভূতিও কাজ করবে না।’  ‘এটাই বাস্তব জগতে জটিলতা তৈরি করতে পারে। আমরা যখন এআই নিয়ে ভাবি, তখন আমাদের ভবিষ্যৎ দুনিয়ার অনুষঙ্গ হিসেবে অ্যালেক্সা ও সিরিকে নিয়ে ভেবে থাকি। এসব সফটওয়্যারের সঙ্গে আমরা একধরনের ভুয়া অন্তরঙ্গ সম্পর্ক তৈরি করতে পারি। কিন্তু এ ক্ষেত্রে বেশির ভাগ যোগাযোগ হবে শুধু একটি সময়ের জন্য এবং শব্দহীন আলাপচারিতা। ধরুন, কোনো হাইওয়েতে গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছেন এবং একটি আপনার সামনে যেতে চাইছে। যদি দেখেন গাড়িটি চালকহীন, তখন আপনি ওই গাড়িকে যেতে দিতে চাইবেন না। এবং তখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যদি আপনার এই অচালকসুলভ আচরণ ধরতে না পারে, তখন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

গবেষক ডেরয় বলেন, ‘সমাজে যেকোনো পর্যায়ে সহযোগিতা বজায় রাখতে হলে কিছু নির্দিষ্ট রীতিনীতি গড়ে তুলতে হয়। ভুল করে অপরাধবোধ মানুষকে সামাজিক রীতিনীতি মেনে চলতে শেখায়। আর এর মধ্যে অন্যদের সঙ্গে আপস করা এবং সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করতে অভ্যস্ত হয়ে ওঠে মানুষ। কিন্তু আমরা এখনো সংবেদনহীন রোবট ও বটগুলোর জন্য সামাজিক বা নৈতিক রীতিনীতি তৈরি করতে পারিনি।’



নিউইয়র্ক টাইমস অবলম্বনে প্রতিবেদনটি তৈরি করেছেন মিন্টু হোসেন

Source: https://www.prothomalo.com/education/science-tech/%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%AE-%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%AC%E0%A6%9F-%E0%A6%95%E0%A6%BF-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B7%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A6%95%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7-%E0%A6%B9%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%89%E0%A6%A0%E0%A6%9B%E0%A7%87

Pages: [1] 2 3 ... 105