Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Badshah Mamun

Pages: 1 [2] 3 4 ... 125
16
স্ট্রোক সাধারণত বাথরুমেই বেশি হয়ে থাকে কেন?


স্ট্রোক সাধারণত বাথরুমেই বেশি হয়ে থাকে কারন,বাথরুমে ঢুকে গোসল করার সময় আমরা প্রথমেই মাথা এবং চুল ভেজাই যা একদম উচিৎ নয়। এটি একটি ভুল পদ্ধতি।

এইভাবে প্রথমেই মাথায় পানি দিলে রক্ত দ্রুত মাথায় উঠে যায় এবং কৈশিক ও ধমনী একসাথে ছিঁড়ে যেতে পারে। ফলস্বরূপ ঘটে স্ট্রোক অতঃপর মাটিতে পড়ে যাওয়া.
কানাডার মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্ট্রোক বা মিনি স্ট্রোকের কারণে যে ধরনের ঝুঁকির কথা আগে ধারণা করা হতো, প্রকৃতপক্ষে এই ঝুঁকি দীর্ঘস্থায়ী এবং আরও ভয়াবহ।

বিশ্বের একাধিক গবেষণা রিপোর্ট অনুযায়ী, গোসলের সময় স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বা পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে। চিকিৎসকদের মতে, গোসল করার সময় কিছু নিয়ম মেনে গোসল করা উচিত।

সঠিক নিয়ম মেনে গোসল না করলে হতে পারে মৃত্যুও। গোসল করার সময় প্রথমেই মাথা এবং চুল ভেজানো একদম উচিৎ নয়। কারণ, মানুষের শরীরে রক্ত সঞ্চালন একটা নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় হয়ে থাকে। শরীরের তাপমাত্রা বাইরের তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নিতে কিছুটা সময় লাগে। চিকিৎসকদের মতে, মাথায় প্রথমেই পানি দিলে সঙ্গে সঙ্গে রক্ত সঞ্চালনের গতি বহু গুণ বেড়ে যায়। সেসময় বেড়ে যেতে পারে স্ট্রোকের ঝুঁকিও।

তা ছাড়া মাত্রাতিরিক্ত রক্তচাপের ফলে মস্তিষ্কের ধমনী ছিঁড়ে যেতে পারে।

#গোসলের সঠিক নিয়মঃ-
প্রথমে পায়ের পাতা ভেজাতে হবে।
এরপর আস্তে আস্তে উপর দিকে কাঁধ পর্যন্ত ভেজাতে হবে।
তারপর মুখে পানি দিতে হবে।
সবার শেষে মাথায় পানি দেওয়া উচিত।

এই পদ্ধতি যাদের উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল এবং মাইগ্রেন আছে তাদের অবশ্যই পালন করা উচিৎ।

এই তথ্যগুলো বয়স্ক মা-বাবা এবং আত্মীয় পরিজনদের অবশ্যই জানিয়ে রাখুন।

Collected from Social Media.

17
Anti-money laundering mechanisms versus the reality of Bangladesh


The growth in money laundering has become a serious threat to Bangladesh’s rising economy, hindering economic good governance and social justice

According to Global Financial Institute (GFI) - a Washington-based think tank - $61.6 billion was siphoned out of Bangladesh between 2005 and 2014. In 2015 alone, about $5.9 billion was laundered out of the country. The GFI reveals that on an average, $7.53 billion is laundered each year and accordingly from 2016 to 2020, around USD 37.65 billion has been laundered.

The GFI ranked Bangladesh among the top 30 countries globally with around 20% of its international trade value being siphoned out of the country every year. The alleged hot spots are the UK, USA, Canada, Saudi Arabia, Singapore, Malaysia, Switzerland, Thailand, Australia, Hong Kong and so on.     

Unsurprisingly, the exponential growth in money-laundering has become a serious threat to Bangladesh's rising economy, hindering economic good governance and social justice. It has turned into a safe avenue for white-collar criminals, i.e., business tycoons, corrupt politicians, public officials and their criminal enterprises.

Individuals and institutions with such heinous criminal records are politically and socially influential, roaming freely without remorse, which is enabled by questionable political dynamics as well as deplorable enforcement of legal norms in curbing such offence. 

According to an annual report 2020 of the Basel Institute of Governance, a not-for-profit Swiss Foundation under Basel University, Bangladesh is among the top 40 countries in the world in terms of risk for money laundering and terrorist financing.

The country ranked 38th among 141 countries on the Basel Anti-Money Laundering Index of 2020. Moreover, the US-based International Consortium of Investigative Journalists (ICIJ) published - in the Panama Papers in 2016 and the Paradise Papers in 2017 - a long list of Bangladeshi money launderers. Bangladeshi media also reported many names of money launderers at various times.

The Swiss National Bank (SNB) in its annual report on 17 June this year, disclosed deposits of Bangladeshi nationals totalling CHF (Swiss Francs) 563 million or about BDT 52.15 billion. In South Asia, Bangladesh is in the third position in deposit lists next to India and Pakistan. In Switzerland, as per section 47 of the Federal Act on Banks and Savings Banks, 1934, the confidentiality of individual depositors is strictly maintained and consequently, no name of any depositor is disclosed.

The GFI focuses on four ways of money laundering, namely, over-invoicing of imported goods, under-invoicing of exported products, Hundi, and Voice Over Internet Protocol (VOIP) business.

Major underlying factors accommodating money laundering include, undue political influence of the launderers, a poor environment for investment, massive corruption in the governance system, absence of rule of law, poor public transparency and accountability, inefficiency in surveillance of the state apparatus, lack of coordination among responsible institutions, as well as lack of enforcement of existing laws.

It also points out that 80% of total money laundering from Bangladesh is Trade-Based Money Laundering (TBML) due to over and under-invoicing. Another study finds weaker national mechanisms for the criminal justice system, the financial regulatory system and transnational collaboration may keep anti-money laundering authorities dysfunctional.   

Finance Minister AHM Mustafa Kamal in a national parliamentary session on June 7, 2021, said that he does not have the list of money launderers pointing to the notion that some people launder money out of excessive greed for wealth while others are criminal by nature. To combat money laundering, he should take a serious stance as part of the ministerial oath, and guide the concerned regulatory bodies proactively so that they remain hawk-eyed and result oriented.

Bangladesh was the first country in South Asia to enact the Money Laundering Prevention Act, 2002 as part of advice of the G7 based Financial Action Task Force (FATF), an intergovernmental body formed in 1989 to combat money laundering and financing of terrorism. In 2008, the Money Laundering Prevention Ordinance was promulgated.

Again the Money Laundering Prevention Act (MLPA), 2012 was enacted repealing the Ordinance. Still, there are scanty penal provisions under the law. Section 4(2) stipulates punishment from four to 12 years of imprisonment along with a two-fold fine of property value or Tk2 million (previously Tk1 million). Section 17(1) provides a provision for confiscation of property within or outside the country subject to conviction by the court. 

Under the MLPA, 2012, the Bangladesh Financial Intelligence Unit (BFIU) was formed as a key authority replacing the Anti-money Laundering Department under the Bangladesh Bank (BB) to deal with money laundering-related crimes.

Nevertheless, the MLPA, 2012 was amended in 2015 to empower the National Board of Revenue (NBR), Anti-corruption Commission (ACC), Criminal Investigation Department (CID), and other entities like the Customs Intelligence and Investigation Directorate (CIID), Department of Narcotics Control (DNC), Department of Environment (DoE) and Security and Exchange Commission (SEC) to investigate certain money laundering cases.

There is also a Money laundering Prevention Rules, 2019 which has categorised 27 types of corruption relating to money laundering. On 10 March, 2021, the Finance Ministry issued an Order based on the Foreign Exchange Regulation Act, 1947 to impose seven years of imprisonment for the wrong declaration on exports, imports and investment abroad by businessmen. The Order will remain effective until December 2026. 

Theoretically, there is hue and cry about zero tolerance of corruption, money laundering and other financial crimes. In practice, however, no sustained initiatives or actions are paving the way for good economic governance and rule of law.

About 408 money laundering cases are pending in various courts. There is no visible success of the BFIU, ACC and NBR in bringing back the laundered money, underscoring the need for the enhancement of their capability, skills, and professionalism along with institutional autonomy.

Notably, Bangladesh as a founding member of the 1997 Asia Pacific Group (APG), an anti-money laundering body consisting of 41 members and several international and regional observers - including the United Nations (UN), World Bank (WB) and International Monetary Fund (IMF) - can take concerted initiatives to control money laundering. Similarly, stringent compliance of the 40 recommendations suggested by the G7 based FATF can be a handy way out in restraining money laundering and terrorist financing.

Furthermore, the UN Convention against Corruption (UNCAC), 2003 in which Bangladesh has been a state party since 2007 can be an opportunity to seek help from destination member countries to recover stolen assets.

Since 2013, Bangladesh as a member of the Egmond Group, can pursue international cooperation to make ends meet. The Egmond Group is a global body formed in 1995 to fight money laundering and other financial crimes with Financial Intelligence Units (FIUs) in 166 member nations under respective central banks.

From Henry Kissinger's basket case, the economy of Bangladesh has risen to a new height over the last five decades and now the country has the 37th largest economy in nominal terms and the 31st based on Purchasing Power Parity (PPP). The economy will be booming faster if the country can control money laundering successfully.

The only success of the recovery of a small portion of laundered money was from Singapore during the FY 2007-2008 by the military-backed caretaker government. Yet, we hope that good sense will prevail among the rulers so that they take timely action to bring perpetrators to justice soon.

Writer:

Emdadul Haque is an Independent Human Rights Researcher and Freelance Contributor based in Dhaka. Email: ehaqlaw@gmail.com and Twitter: @emdadlaw

Dr Kudrat-E-Khuda Babu is an Associate Professor and Head of the Law Department at Daffodil International University, Bangladesh. He can be reached at: kekbabu@yahoo.com 

Source: https://www.tbsnews.net/thoughts/anti-money-laundering-mechanisms-versus-reality-bangladesh-291793#.YSQ3lt9uax0.twitter

18
Air Force / Thoughts on Aerospace Related Industries
« on: August 24, 2021, 02:50:32 PM »
Thoughts on Aerospace Related Industries


Question:  Why would a big Aerospace Company come?

There is no market. No skilled manpower, political situation uncertain, business is unfriendly.

Not feasible, as Bangladesh is too small. Financially not profitable.  Assembling and making is not the same thing.

Let us wait for the answer to come as we explore some developments and take a few things into consideration.

-Bangladesh is rapidly progressing with 6 plus GDP in the last decades. It has now a median age of 27.6 and around 118 m semi-skilled young computer literate people are coming out in the next decade. (Presentation of BIDA). HRD is now geared up with the education institutes and the pairing up of the industries. The coming up of the Aerospace University is another one who would have EASA recognition. The software business is also growing. BSMRAAU has signed an Agreement with AirBus to develop and ensure quality for EASA certification.

-The preponderance of young people gives us the Demographic Dividend. Japan, China, and Europe are aging. Next 10 years they would be shrinking, not only population wise but also marketwise (naturally). Factories there will need migrant workers and market expansion to places where the economy is growing. Many developed countries would rather keep migrants outside while they take the profit. This could be one scenario. (Canada is welcoming Immigrants like Germany)

-There are around 10 million plus Bangladeshis abroad. Unofficially more. While they live and raise children they are likely to visit their roots. While they travel to and from Bangladesh, many others also would do the same through Bangladesh. Because, we have bigger runways and it will be easier. For example, Nepal, Bhutan, Tripoura and other States of India. Moreover Bangladesh is coming up with a deep sea port and the distance to Chattagram port from Guahati is much shorter than Kolkata.  If India China cooperates, the distance to port from Chendu is shortest if Chittagong or Mongla is used. We have a dozen plus runways of 5000 ft plus, of them, if we renovate a few, we have the possibility of becoming a connectivity hub. Aerospace industries need runways. We have. In short, we can be, as per the guidance of our honorable Prime Minister a Hub of Connectivity for East and West. And we can use the disused runways for growth of aviation related industries/plants/factories.

-Now where is the market? Where is the market in Singapore?
There is 100 Boeing 777 converted to cargo version in ST Corporation. They have the branding and the reputation and the market is the whole world. So, we have to build up the reputation, by own innovation, R&D, ingenuity, and that means leap frogging. We do not have to re-invent the wheel. And we may even tap on our vast experts all over the world. NRB (Non resident Bangladeshis). We can even go in WRAP speed by by-passing some of the wrong stages that the westerners took and brought about the Climate Change. We side step the bad patches and go full speed green. Catch the Band Wagon of 4th Industrial revolution. Means we must be putting forward the appeal of Eco-friendly Industrialization.  And strength is the youngsters coming of age. However, the demographic dividend would be of a small window of 20 to 30 years as we are coming to a halt in our population GROWTH RATE. {2.1%}

-Initial start-up has to be with partnership. It does not come free from nothing. Every asset acquisition and procurement need to be connected with offsets and counterbalance. (Like Indonesia). It could be joint ventures. But the bottom-line is to have deals that bring in the knowhow and the technologies, not by force, but by and because it would be beneficial for those coming. Win win. The companies coming could make products competitive, and by virtue of readily available skilled and semi- skilled workforce generated by the synergistic effect of working together between the Education Institutions and the Industries and now the military. A bigger dimension of PPP. What we should do, we need to project and point out the possibilities. How? by branding, by advertising, by expositions and exhibitions, like AIR SHOW.

-Political stability is a matter of convenience, once economic development becomes the top priority. All concerned would be tolerant, accommodative as necessary due the requirement of nation building. Well that's my belief. Reason all will be the winner, no loser.

-Post COVID World Scenario
US China bashing has increased, spectre of conflict heightened by the Jewish settlement renewals. The India China media debate goes on and increasing dominance of China is prominent in Africa and the rest of the third world. China has developed Aircraft Carrier and exercising its might where needed. Russia adds with the flexing of military might also by steaming trough the English channel. Thus many western investors who went to China, now desires to go somewhere else. Moreover they understand the Chinese market will eventually shrink due to aging population. Laos, Veitnam Cambodia are catching up. Why not us. The world is moving more to e business and BLOCK CHAIN. Negative Interest Rate NIR is setting in. A new world order of economic parity and more humane green regime may be in the offing. We only need to go and venture boldly.

-Points to Ponder on Vision 2041 and Delta Plan

Our HPM's Vision 2041 envisages that we will be a developed country. As we have already attained the criteria to graduate from LDC to middle income developing country status, we feel elated. However our leaning on Agro sector and services sector added with enhanced remittance flow alone will not be sufficient to take us there. We would need Industrialization. (In 2019, the writer was talking to Mahatir Muhammad where he emphasized and said so). Of course it has to be eco-friendly. And what else could be more value added than Aerospace related products and services. Today, a big chunk of the aviation travel market is taken away by outside airlines; our fleet goes abroad to perform routine maintenance. We could with little skill in negotiation get into the business of MRO (maintenance repair organization) in our country. And with the marketing of branded world class aviation companies we should be able to be competitive as well as look after our own requirements which are very less now. To be a Connectivity Hub, we need to expand our Flag Carrier. The input in the national carrier would be a greater output in branding Bangladesh. That Branding will get other products to market. From low end products we need to transit to high end value added products. This is more important as we do not have minerals or oil. Remittance could take us up to a certain point from where we have to step into the world of our own innovations through extensive R&D and building up a society of learned skilled people. The learning and the degree should be merged with the needs of the industries. Synergy should be developed through PPP.

-   Unfortunately we only recently have been able to put up our satellite, though back in 1974 Banghabandhu established Betbunia ground station. SPARSO do not have a space program to help in shaping and modifying our DELTAPLAN. It has to have a space orientation and the outlook need to be in detail as to how we derive maximum benefit from space research and exploration in 2100.

-   Only by imitation and by integrating others product we may not be attaining the lofty goal of 2041, but if we add along, our own innovation and ingenuity and technological developments with inventions getting Patented IPR, we are most likely to reach far better way and be a society knowledge based having empathy, happy and having understanding of people's emotions/pain and above all HUMANE.

Writer:


Air Chief Marshal Masihuzzaman Serniabat, BBP, OSP, ndu, psc
Former Chief of Air Staff, Bangladesh Air Force

19
Science Discussion Forum / MS Word Keyboard
« on: August 24, 2021, 09:26:33 AM »
MS Word Keyboard -এর শটকার্ট ব্যবহারঃ
===========================
1. Ctrl + A = সিলেক্ট অল। (All Select)
2. Ctrl + B = টেক্সট বোল্ড। (Bold)
3. Ctrl + C = কোন কিছু কপি করা। (Copy)
4. Ctrl + D = ফন্ট পরিবর্তনের ডায়ালগ বক্স প্রদর্শন করা।
5. Ctrl + E = সেন্টার এলাইনমেন্ট করা।
6. Ctrl + F = কোন শব্দ খোঁজা বা প্রতিস্থাপন করা। (Find World)
7. Ctrl + G = গো টু কমান্ড।
8. Ctrl + H = রিপ্লেস কমান্ড। (Replace)
9. Ctrl + I = টেক্সট ইটালিক। (Italic)
10. Ctrl + J = টেক্সট জাস্টিফাইড এলাইনমেন্ট করা। (Justify)
11. Ctrl + K = হাইপারলিংক তৈরী করা। (Hyperlink)
12. Ctrl + L = টেক্সট লেফট এলাইনমেন্ট করা। (Left Align)
13. Ctrl + M = ইনভেন্ট দেয়ার জন্য।
14. Ctrl + N = নতুন কোন ডকুমেন্ট খোলার জন্য। (New File)
15. Ctrl + O = পূর্বে তৈরী করা কোন ফাইল খোলার জন্য। (File Open)
16. Ctrl + P = ডকুমেন্ট প্রিন্ট। (Print)
17. Ctrl + Q = প্যারাগ্রাফের মাঝে স্পেসিং করার জন্য।
18. Ctrl + R = টেক্সটকে রাইট এলাইনমেন্ট করা। (Right Align)
19. Ctrl + S = ফাইল সেভ। (Save)
20. Ctrl + T = ইনডেন্ট পরিবর্তন করার জন্য।
21. Ctrl + U = টেক্সট আন্ডারলাইন।(Underline)
22. Ctrl + V = টেক্সট পেষ্ট করার জন্য।(Paste)
23. Ctrl + W = ফাইল বন্ধ করার জন্য। (Close File)
24. Ctrl + X = ডকুমেন্ট থেকে কিছু কাট করার জন্য। (Cut)
25. Ctrl + Y = রিপিট করার জন্য। (Redo)
26. Ctrl + Z = আন্ডু বা পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনা। (Undo)
27. কম্পিউটার Restart করতে Ctrl+Alt+Delete
কম্পিউটার কী-বোর্ডের উপরের দিকের ফাংশন Key F1 থেকে F12 বাটনগুলোর গুরুত্বপূর্ণ ব্যবহারঃ
F1 : সাহায্যকারী কি হিসেবেই ব্যবহিত হয়। যখন F1 কি চাপা হয় তখন প্রত্যেক প্রোগ্রামেরই হেল্প পেইজ চলে আসে।
F2 : ধারণত কোনো ফাইল বা ফোল্ডার Rename করার জন্য ব্যবহার হয়। Alt+Ctrl+F2 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের নতুন ডকুমেন্ট খোলা যায় । Ctrl+F2 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের প্রিন্ট প্রিভিউ দেখা হয়।
F3 : কি চাপলে মাইক্রোসফট উইন্ডোজসহ অনেক প্রোগ্রামের সার্চ অপশন চালু হয়।Shift+F3 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের লেখা বড় হাতের থেকে ছোট হাতের বা প্রত্যেক শব্দের প্রথম অক্ষর বড় হাতের বর্ণ দিয়ে শুরু ইত্যাদি কাজ করা হয়।
F4 : চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের last action performed Repeat করা যায়। Alt+F4 চেপে সক্রিয় সব প্রোগ্রাম বন্ধ করা হয়। Ctrl+F4 চেপে সক্রিয় সব উইন্ডো বন্ধ করা হয়।
F5 : চেপে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ, ইন্টারনেট ব্রাউজার ইত্যাদি Refresh করা হয়।পাওয়ার পয়েন্টের স্লাইড শো আরম্ভ করা হয়। এবং মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের find, replace, go to উইন্ডো খোলা হয়।
F6 : চেপে মাউসের কার্সরকে ইন্টারনেট ব্রাউজারের অ্যাড্রেসবারে নিয়ে যাওয়া হয়। Ctrl+Shift+F6 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্টে খোলা অন্য ডকুমেন্টটি সক্রিয় করা হয়।
F7 : চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে লেখা বানান ও গ্রামার ঠিক করা হয় এবং মজিলা ফায়ারফক্সের Creat browsing চালু করা হয়। Shift+F7 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডে কোনো নির্বাচিত শব্দের প্রতিশব্দ, বিপরীত শব্দ, শব্দের ধরন ইত্যাদি জানার ডিকশনারি চালু করা হয়।
F8 : কি টি অপারেটিং সিস্টেম চালু হওয়ার সময় কাজে লাগে। সাধারণত উইন্ডোজ Safe Mode-এ চালু করার জন্য এই কি টি চাপতে হয়।
F9 : কি চেপে Quark 5.0 এর মেজারমেন্ট টুলবার ওপেন করা হয়।
F10 :কি চেপে ইন্টারনেট ব্রাউজার বা কোনো খোলা উইন্ডোর মেনুবার নির্বাচন করা হয়।Shift+F10 চেপে কোনো নির্বাচিত লেখা বা লিংক বা ছবির ওপর মাউস রেখে ডান বাটনে ক্লিক করার কাজ করা হয়।
F11 : চেপে ইন্টারনেট ব্রাউজারের ফুল-স্ক্রিন মোড অন-অফ করা হয়।
F12 : চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের Save as উইন্ডো ওপেন করা হয়। Shift+F12 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্ট সেভ করা হয়। এবং Ctrl+Shift+F12 চেপে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্ট প্রি
--Md.Yasin Ahmed --
Important Shortcut Keys for Computer-
CTRL+A. . . . . . . . . . . . . . . . . Select All
CTRL+C. . . . . . . . . . . . . . . . . Copy
CTRL+X. . . . . . . . . . . . . . . . . Cut
CTRL+V. . . . . . . . . . . . . . . . . Paste
CTRL+Z. . . . . . . . . . . . . . . . . Undo
CTRL+B. . . . . . . . . . . . . . . . . Bold
CTRL+U. . . . . . . . . . . . . . . . . Underline
CTRL+I . . . . . . . . . . . . . . . . . Italic
F1 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Help
F2 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Rename selected object
F3 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Find all files
F4 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Opens file list drop-down in dialogs
F5 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Refresh current window
F6 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Shifts focus in Windows Explorer
F10 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Activates menu bar options
ALT+TAB . . . . . . . . . . . . . . . . Cycles between open applications
ALT+F4 . . . . . . . . . . . . . . . . . Quit program, close current window
ALT+F6 . . . . . . . . . . . . . . . . . Switch between current program windows
ALT+ENTER. . . . . . . . . . . . . . Opens properties dialog
ALT+SPACE . . . . . . . . . . . . . . System menu for current window
ALT+¢ . . . . . . . . . . . . . . . . . . opens drop-down lists in dialog boxes
BACKSPACE . . . . . . . . . . . . . Switch to parent folder
CTRL+ESC . . . . . . . . . . . . . . Opens Start menu
CTRL+ALT+DEL . . . . . . . . . . Opens task manager, reboots the computer
CTRL+TAB . . . . . . . . . . . . . . Move through property tabs
CTRL+SHIFT+DRAG . . . . . . . Create shortcut (also right-click, drag)
CTRL+DRAG . . . . . . . . . . . . . Copy File
ESC . . . . . . . . . . . . . . . . . . . Cancel last function
SHIFT . . . . . . . . . . . . . . . . . . Press/hold SHIFT, insert CD-ROM to bypass auto-play
SHIFT+DRAG . . . . . . . . . . . . Move file
SHIFT+F10. . . . . . . . . . . . . . . Opens context menu (same as right-click)
SHIFT+DELETE . . . . . . . . . . . Full wipe delete (bypasses Recycle Bin)
ALT+underlined letter . . . . Opens the corresponding menu
PC Keyboard Shortcuts
Document Cursor Controls
HOME . . . . . . . . . . . . . . to beginning of line or far left of field or screen
END . . . . . . . . . . . . . . . . to end of line, or far right of field or screen
CTRL+HOME . . . . . . . . to the top
CTRL+END . . . . . . . . . . to the bottom
PAGE UP . . . . . . . . . . . . moves document or dialog box up one page
PAGE DOWN . . . . . . . . moves document or dialog down one page
ARROW KEYS . . . . . . . move focus in documents, dialogs, etc.
CTRL+ > . . . . . . . . . . . . next word
CTRL+SHIFT+ > . . . . . . selects word
Windows Explorer Tree Control
Numeric Keypad * . . . Expand all under current selection
Numeric Keypad + . . . Expands current selection
Numeric Keypad – . . . Collapses current selection
¦ . . . . . . . . . . . . . . . . . . Expand current selection or go to first child
‰ . . . . . . . . . . . . . . . . . . Collapse current selection or go to parent
Special Characters
‘ Opening single quote . . . alt 0145
’ Closing single quote . . . . alt 0146
“ Opening double quote . . . alt 0147
“ Closing double quote. . . . alt 0148
– En dash. . . . . . . . . . . . . . . alt 0150
— Em dash . . . . . . . . . . . . . . alt 0151
… Ellipsis. . . . . . . . . . . . . . . . alt 0133
• Bullet . . . . . . . . . . . . . . . . alt 0149
® Registration Mark . . . . . . . alt 0174
© Copyright . . . . . . . . . . . . . alt 0169
™ Trademark . . . . . . . . . . . . alt 0153
° Degree symbol. . . . . . . . . alt 0176
¢ Cent sign . . . . . . . . . . . . . alt 0162
1⁄4 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . alt 0188
1⁄2 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . alt 0189
3⁄4 . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . alt 0190
PC Keyboard Shortcuts
Creating unique images in a uniform world! Creating unique images in a uniform world!
é . . . . . . . . . . . . . . . alt 0233
É . . . . . . . . . . . . . . . alt 0201
ñ . . . . . . . . . . . . . . . alt 0241
÷ . . . . . . . . . . . . . . . alt 0247
File menu options in current program
Alt + E Edit options in current program
F1 Universal help (for all programs)
Ctrl + A Select all text
Ctrl + X Cut selected item
Shift + Del Cut selected item
Ctrl + C Copy selected item
Ctrl + Ins Copy selected item
Ctrl + V Paste
Shift + Ins Paste
Home Go to beginning of current line
Ctrl + Home Go to beginning of document
End Go to end of current line
Ctrl + End Go to end of document
Shift + Home Highlight from current position to beginning of line
Shift + End Highlight from current position to end of line
Ctrl + f Move one word to the left at a time
Ctrl + g Move one word to the right at a time
MICROSOFT® WINDOWS® SHORTCUT KEYS
Alt + Tab Switch between open applications
Alt +
Shift + Tab
Switch backwards between open
applications
Alt + Print
Screen
Create screen shot for current program
Ctrl + Alt + Del Reboot/Windows® task manager
Ctrl + Esc Bring up start menu
Alt + Esc Switch between applications on taskbar
F2 Rename selected icon
F3 Start find from desktop
F4 Open the drive selection when browsing
F5 Refresh contents
Alt + F4 Close current open program
Ctrl + F4 Close window in program
Ctrl + Plus
Key
Automatically adjust widths of all columns
in Windows Explorer
Alt + Enter Open properties window of selected icon
or program
Shift + F10 Simulate right-click on selected item
Shift + Del Delete programs/files permanently
Holding Shift
During Bootup
Boot safe mode or bypass system files
Holding Shift
During Bootup
When putting in an audio CD, will prevent
CD Player from playing
WINKEY SHORTCUTS
WINKEY + D Bring desktop to the top of other windows
WINKEY + M Minimize all windows
WINKEY +
SHIFT + M
Undo the minimize done by WINKEY + M
and WINKEY + D
WINKEY + E Open Microsoft Explorer
WINKEY + Tab Cycle through open programs on taskbar
WINKEY + F Display the Windows® Search/Find feature
WINKEY +
CTRL + F
Display the search for computers window
WINKEY + F1 Display the Microsoft® Windows® help
WINKEY + R Open the run window
WINKEY +
Pause /Break
Open the system properties window
WINKEY + U Open utility manager
WINKEY + L Lock the computer (Windows XP® & later)
OUTLOOK® SHORTCUT KEYS
Alt + S Send the email
Ctrl + C Copy selected text
Ctrl + X Cut selected text
Ctrl + P Open print dialog box
Ctrl + K Complete name/email typed in address bar
Ctrl + B Bold highlighted selection
Ctrl + I Italicize highlighted selection
Ctrl + U Underline highlighted selection
Ctrl + R Reply to an email
Ctrl + F Forward an email
Ctrl + N Create a new email
Ctrl + Shift + A Create a new appointment to your calendar
Ctrl + Shift + O Open the outbox
Ctrl + Shift + I Open the inbox
Ctrl + Shift + K Add a new task
Ctrl + Shift + C Create a new contact
Ctrl + Shift+ J Create a new journal entry
WORD® SHORTCUT KEYS
Ctrl + A Select all contents of the page
Ctrl + B Bold highlighted selection
Ctrl + C Copy selected text
Ctrl + X Cut selected text
Ctrl + N Open new/blank document
Ctrl + O Open options
Ctrl + P Open the print window
Ctrl + F Open find box
Ctrl + I Italicize highlighted selection
Ctrl + K Insert link
Ctrl + U Underline highlighted selection
Ctrl + V Paste
Ctrl + Y Redo the last action performed
Ctrl + Z Undo last action
Ctrl + G Find and replace options
Ctrl + H Find and replace options
Ctrl + J Justify paragraph alignment
Ctrl + L Align selected text or line to the left
Ctrl + Q Align selected paragraph to the left
Ctrl + E Align selected
--Md.Yasin Ahmed --
⬛️কিছু উইন্ডোজ কিবোর্ড শর্টকাট যা প্রত্যেকের জানা দরকার⬛️

সকল অপারেটিং সিস্টেম ও প্রায় সব প্রোগ্রামেই দ্রুত কাজ করার জন্য কিবোর্ড শর্টকাট দেয়া থাকে। সচরাচর ব্যবহারকারীরা মাত্র গুটিকয়েক কিবোর্ড শর্টকাট মনে রাখেন। কিন্তু কাজের সুবিধার্থে দরকারী কিছু কিবোর্ড শর্টকাট মুখস্থ করে রাখলে জীবন অনেকটাই সহজ হয়ে যায়। তাই এই পোস্টে আপনাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি উইন্ডোজ কিবোর্ড শর্টকাট ও সেগুলোর কাজ জানাচ্ছি, যা আপনার কম্পিউটারে কাজের গতি অনেক গুণ বাড়িয়ে দেবে।
Ctrl+Z
উইন্ডোজ কম্পিউটারে কাজ করার সময় হঠাত ভুলে যদি কোনো ফাইল ডিলিট করে রিসাইকেল বিনে পাঠিয়ে দেন, তাহলে সাথে সাথে Ctrl এবং Z বাটন একত্রে চাপ দিন। এতে আপনার সেই মুছে যাওয়া ফাইল আগের স্থানে ফিরে আসবে। মাইক্রোসফট অফিস, ব্রাউজার সহ বেশিরভাগ প্রোগ্রামের সাথে (যেখানে ব্যবহারকারীর কিছু লেখা দরকার হয়) এই শর্টকাটটি কাজ করে। এটি মূলত সর্বশেষ সম্পন্ন কাজটিকে আনডু করে দেয়। Ctrl+Z যে কাজ করে, সেটিকে আনডু করতে Ctrl+Y চাপ দিতে পারেন।
Ctrl+W
এই কিবোর্ড শর্টকাটটি আপনার চালু থাকা উইন্ডো বন্ধ করে দেবে। আপনি যদি কোনো অফিস ডকুমেন্টে কাজ করতে থাকেন, তাহলে Ctrl+W চাপ দিলে প্রথমে আপনার ডকুমেন্টটি সেইভ করতে বলবে এবং তারপর এটি ক্লোজ করা যাবে।
Alt+F4
এটি চালু থাকা অ্যাপ বন্ধ করে দেবে। Alt+F4 শর্টকাটটি এক্টিভ উইন্ডোকেও ক্লোজ করে দেয়। তবে বোনাস হিসেবে, আপনি যদি ডেস্কটপের খালি জায়গায় ক্লিক করে Alt+F4 চাপ দেন তাহলে এটি পিসি বন্ধ, স্লিপ, হাইবারনেট, রিস্টার্ট প্রভৃতি করার অপশন দেখাবে।
Ctrl+A
নিশ্চয়ই জানেন, এই শর্টকাটটি এক্টিভ উইন্ডোতে থাকা সকল কনটেন্ট সিলেক্ট করে। তারপর আপনি Ctrl+S চাপ দিয়ে সেইভ, Ctrl+C চাপ দিয়ে কপি Ctrl+X চাপ দিয়ে কাট এবং Ctrl+V চাপ দিয়ে অন্য উইন্ডোতে গিয়ে পেস্ট করতে পারেন।
Win+D
উইন্ডোজ বাটন এবং D একত্রে প্রেস করলে আপনার ওপনে থাকা সকল উইন্ডো মিনিমাইজ বা হাইড হয়ে পিসির ডেস্কটপ চলে আসবে। পুনরায় Win+D চাপ দিলে প্রথমবার হাইড করা উইন্ডোগুলো আবার ফিরে আসবে।
Alt+Tab
এই শর্টকাট প্রেস করলে স্ক্রিনে আপনার সকল চালু থাকা অ্যাপের প্রিভিউ দেখা যাবে। সেখান থেকে দ্রুত কোনো একটা অ্যাপে ক্লিক করে সেটাতে কাজ করতে পারেন। Win+Tab শর্টকাটও প্রায় একই কাজ করে, তবে এখানে কীবোর্ড চাপ দিয়ে ছেড়ে দিলেও প্রিভিউগুলো থেকে যায়।
F2
কোনো ফাইল বা ফোল্ডারের ওপর একটি ক্লিক করে তারপর F2 বাটন চাপ দিলে ঐ ফাইল বা ফোল্ডারের নাম পরিবর্তন করার অপশন আসবে।
F5
ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময় একটি পেজ রিফ্রেশ বা পুনরায় লোড করতে চাইলে F5 চাপ দিন।
Win+L
এটি আপনার পিসির স্ক্রিন লক করে দেবে। ফলে পিসি আবার ব্যবহার করতে চাইলে পাসওয়ার্ড এন্টার করে আনলক করে নিতে হবে। পাসওয়ার্ড আগে থেকে দেয়া না থাকলে শুধু সাইন-ইন বাটনে ক্লিক করে এন্টার দিলেই হবে।
Win+PrtScn
এই শর্টকাট আপনার পিসির পুরো স্ক্রিনের স্ক্রিনশট নিয়ে সি ড্রাইভের পিকচার্স ফোল্ডারে একটি ইমেজ আকারে সেইভ করে রাখবে। আর ক্লিপবোর্ডেও ছবিটি থাকবে, যা পেইন্ট প্রোগ্রাম ওপেন করে পেস্ট করে এডিট করতে পারবেন।
Ctrl+Alt+Del
পিসি হ্যাং করলে এই বিখ্যাত শর্টকাটটি চেপে উইন্ডোজের টাস্ক ম্যানেজার প্রোগ্রাম চালু করার অপশন পাবেন। সেখান থেকে হ্যাং হওয়া অ্যাপ বন্ধ করা যাবে। এছাড়া পিসি লক করা, বন্ধ করা কিংবা সাইনআউটের অপশনও পাওয়া যাবে।
--Md.Yasin Ahmed --
# কম্পিউটার_Keyboard এর শর্টকাট :
>> F1: সাহায্য (Help).
>> F2: নির্বাচিত ফাইল রিনেইম করা।
>> F3: ফাইল খোঁজা।
>> F4: অন্য কোনো ফোল্ডারে ফাইল মুভ করা।
>> F5: বর্তমান উইন্ডো রিফ্রেশ করা।
>> F7: ওয়ার্ড/ এক্সেল ডকুমেন্ট স্পেলিং ডায়লগ ওপেন করা।
>> F10: মেনু বার চালু করা।
>> CTRL+C: কপি।
>> CTRL+X: কাট।
>> CTRL+V: পেস্ট।
>> CTRL+Z: আনডু।
>> CTRL+B: অক্ষর বোল্ড করা।
>> CTRL+U: অক্ষর আন্ডার লাইন করা।
>> CTRL+I: অক্ষর ইটালিক করা।
>> CTRL+K: হাইপারলিংক ডায়ালগ ওপেন হওয়া।
>> CTRL+ESC: Start menu চালু।
>> CTRL+ Home: ডকুমেন্ট এর শুরুতে যাওয়া।
>> CTRL+ End: ডকুমেন্ট এর শেষে যাওয়া।
>> CTRL+SHIFT+ESC: টাস্ক ম্যানেজার।
>> CTRL+TAB: কোনো প্রোগ্রামের এক উইন্ডো থেকে অন্য উইন্ডোতে যাওয়া।
>> CTRL+F4: একাধিক ডকুমেন্ট ইন্টারফেস সহ কোনো প্রোগ্রাম বন্ধ করা।
>> CTRL+A: ফোল্ডারের সবগুলো আইটেম নির্বাচন করা।
>> SHIFT+ DELETE: সরাসরি ফাইল ডিলিট করা।
>> SHIFT+ right click: অতিরিক্ত শর্টকাট সহ মেনু।
>> SHIFT+ double click: বিকল্প ডিফল্ট কমান্ড।
>> SHIFT+F10: নির্বাচিত আইটেমের জন্য শর্টকাট মেনু।
>> SHIFT: অটোরান বন্ধ করতে এটি চেপে ধরে রাখুন।
>> SHIFT+ Windows Logo + M: মিনিমাইজ আনডু করা।
>> Home: বর্তমান লাইনের শুরুতে যাওয়া।
>> End: বর্তমান লাইনের শেষে যাওয়া।
>> ALT+ F4: প্রোগ্রাম বন্ধ করা।
>> ALT+TAB : অন্য কোনো চালু করা প্রোগ্রামে যাওয়া (সবগুলো প্রোগ্রাম দেখতে ALT চেপে ধরে TAB চাপুন)।
>> ALT+ SPACE: মেইন উইন্ডো’র সিস্টেম মেনু দেখা।
>> Windows Logo +L: কম্পিউটার লক করা।
>> Windows Logo+ M: সব প্রোগ্রাম মিনিমাইজ করা।
>> Windows Logo+F: Files অথবা Folders খোজাঁ।
>> Windows Logo+V: ক্লিপবোর্ড চালু করা।
>> Windows Logo+K: Keyboard Properties ডায়ালগ বক্স চালু করা।
>> Windows Logo+I: Mouse Properties ডায়ালগ বক্স চালু করা।
>> BACKPACE: পূর্ববর্তী ফোল্ডারে যাওয়া, (ইন্টারনেট ব্রাউজারের ক্ষেত্রে পুর্বের পেইজ
--Md.Yasin Ahmed --
Save Your time with Short Cut 📌
Ctrl + A - Select All
Ctrl + B - Bold
Ctrl + C - Copy
Ctrl + D - Fill
Ctrl + F - Find
Ctrl + G - Find next instance of text
Ctrl + H - Replace
Ctrl + I - Italic
Ctrl + K - Insert a hyperlink
Ctrl + N - New workbook
Ctrl + O - Open
Ctrl + P - Print
Ctrl + R - Nothing right
Ctrl + S - Save
Ctrl + U - Underlined
Ctrl + V - Paste
Ctrl W - Close
Ctrl + X - Cut
Ctrl + Y - Repeat
Ctrl + Z - Cancel
F1 - Help
F2 - Edition
F3 - Paste the name
F4 - Repeat the last action
F4 - When entering a formula, switch between absolute / relative references
F5 - Goto
F6 - Next Pane
F7 - Spell Check
F8 - Extension of the mode
F9 - Recalculate all workbooks
F10 - Activate Menubar
F11 - New graph
F12 - Save As
Ctrl +: - Insert the current time
Ctrl +; - Insert the current date
Ctrl + "- Copy the value of the cell above
Ctrl + '- Copy the formula from the cell above
Shift - Offset Adjustment for Additional Functions in the Excel Menu
Shift + F1 - What is it?
Shift + F2 - Edit cell comment
Shift + F3 - Paste the function into the formula
Shift + F4 - Search Next
Shift + F5 - Find
Shift + F6 - Previous Panel
Shift + F8 - Add to the selection
Shift + F9 - Calculate the active worksheet
Shift + F10 - Popup menu display
Shift + F11 - New spreadsheet
Shift + F12 - Save
Ctrl + F3 - Set name
Ctrl + F4 - Close
Ctrl + F5 - XL, size of the restore window
Ctrl + F6 - Next Workbook Window
Shift + Ctrl + F6 - Previous Workbook Window
Ctrl + F7 - Move window
Ctrl + F8 - Resize Window
Ctrl + F9 - Minimize the workbook
Ctrl + F10 - Maximize or Restore Window
Ctrl + F11 - Inset 4.0 Macro sheet
Ctrl + F1 - Open File
Alt + F1 - Insert a graph
Alt + F2 - Save As
Alt + F4 - Output
Alt + F8 - Macro dialog
Alt + F11 - Visual Basic Editor
Ctrl + Shift + F3 - Create a name using the names of row and column labels
Ctrl + Shift + F6 - Previous Window
Ctrl + Shift + F12 - Printing
Alt + Shift + F1 - New spreadsheet
Alt + Shift + F2 - Save
Alt + = - AutoSum
Ctrl + `- Toggle value / display of the formula
Ctrl + Shift + A - Insert the argument names in the formula
Alt + down arrow - automatic view list
Alt + '- Format Style Dialog
Ctrl + Shift + ~ - General Formal

Collected from Facebook.
facebook.com/yasinahmedshorif

20
ENTREPRENEURIAL MINDSET – NEW WAYS OF EDUCATION














21
শক্তিশালী মুমিন এর ১৪টি অনন্য গুণ
▬▬▬▬ ◐◯◑ ▬▬▬▬

◈◈ শক্তিশালী মুমিন এর মর্যাদা:

 রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

الْمُؤْمِنُ الْقَوِيُّ خَيْرٌ وَأَحَبُّ إِلَى اللَّهِ مِنَ الْمُؤْمِنِ الضَّعِيفِ ، وَفِي كُلٍّ خَيْرٌ احْرِصْ عَلَى مَا يَنْفَعُكَ ، وَاسْتَعِنْ بِاللَّهِ وَلَا تَعْجَزْ ، وَإِنْ أَصَابَكَ شَيْءٌ فَلَا تَقُلْ : لَوْ أَنِّي فَعَلْتُ كَانَ كَذَا وَكَذَا ، وَلَكِنْ قُلْ : قَدَرُ اللَّهِ وَمَا شَاءَ فَعَلَ ، فَإِنَّ لَوْ تَفْتَحُ عَمَلَ الشَّيْطَانِ “

“শক্তিশালী মুমিন দুর্বল মুমিনের চেয়ে অধিক উত্তম এবং আল্লাহর নিকট অধিক প্রিয়। আর সবকিছুতেই কল্যাণ রয়েছে। সুতরাং যাতে তোমার কল্যাণ রয়েছে তা অর্জনে আগ্রহী হও এবং আল্লাহর সাহায্য কামনা কর। দুর্বলতা প্রদর্শন করো না। তবে যদি তোমার কোন কাজে কিছু ক্ষতি সাধিত হয়, তখন তুমি এভাবে বলো না যে, “যদি আমি কাজটি এভাবে করতাম তা হলে আমার এই এই হত।” বরং বল, “আল্লাহ এটাই তকদীরে রেখেছিলেন। আর তিনি যা চান তা-ই করেন।” কেননা ‘যদি’ শব্দটি শয়তানের কাজের পথকে উন্মুক্ত করে দেয়।” (মুসলিম, মিশকাত হা/৫২৯৮)।

উক্ত হাদিস থেকে বুঝা গেল যে, ঈমানদারগণ ঈমানের দিক দিয়ে সমান নয়। তাদের মাঝে পার্থক্য রয়েছে। তবে শক্তিশালী মুমিনগণ অধিক উত্তম এবং আল্লাহর নিকট অধিক প্রিয়। কিন্তু দুর্বল মুমিনরাও কল্যাণ থেকে বঞ্চিত নয়।

তাহলে আমাদের জানা দরকার শক্তিশালী মুমিন কারা? কী তাদের গুণাবলী ও বৈশিষ্ট্য? এগুলো জেনে আমরাও যেন সে সকল গুণাবলী অর্জন করে আল্লাহর প্রিয়ভাজন মুমিনদের দলভুক্ত হতে পারি। আল্লাহ তাআলা তাওফিক দান করুন। আমীন।

◈◈ শক্তিশালী মুমিন এর গুণাবলী:

নিম্নে একজন শক্তিশালী মুমিনের ১৪টি অনন্য গুণাবলী সংক্ষেপে আলোচনা করা হল:

◉ ১) সুদৃঢ় ঈমান
◉ ২) দ্বীনের ইলম অর্জন করা
◉ ৩) সবর বা ধৈর্য ধারণ
◉ ৪) রাগ নিয়ন্ত্রণ
◉ ৫) উচ্চাকাঙ্ক্ষা থাকা
◉ ৬) উদ্যমী হওয়া
◉ ৭) নিজের সংশোধনের পাশাপাশি অন্যের সংশোধনের প্রচেষ্টা থাকা
◉ ৮) মানুষের উপকার করা
◉ ৯) সুস্বাস্থ্য
◉ ১০) মজবুত চিন্তাভাবনা ও সুনিপুণ পরিকল্পনা
◉ ১১) সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে নির্ভীক
◉ ১২) আত্মমর্যাদা ও পরিচ্ছন্ন অন্তর
◉ ১৩) শক্তিশালী মুমিনের হৃদয় হয় ভালবাসা, দয়া ও মায়া–মমতায় পূর্ণ।
◉ ১৪) ভুল স্বীকার

নিম্নে উপরোক্ত বিষয় সমূহের পর্যালোচনা তুলে ধরা হল:

❑ ১) সুদৃঢ় ঈমান:

শক্তিশালী মুমিন মানেই অটুট আকীদা ও বিশ্বাসের অধিকারী। সে রব হিসেবে আল্লাহর প্রতি, দ্বীন হিসেবে ইসলামের প্রতি এবং নবী হিসেবে মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর প্রতি সন্তুষ্ট। সে আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের বিষয়ে এমন সুদৃঢ় ঈমান পোষণ করে যে, কোন সংশয় ও ভ্রান্তির সামনে দুর্বল হয় না। সে তার মূল্যবোধ ও মূলনীতিতে আস্থাশীল- যার কারণে সংশয় ও সন্দেহের ঝড় তাকে টলাতে পারে না বা কু প্রবৃত্তি ও লালসার স্রোত তরঙ্গ তাকে ভাসিয়ে নিতে পারে না।

❑ ২) দ্বীনের ইলম অর্জন করা:

শক্তিশালী মুমিনের অন্যতম গুণ হল, সে দ্বীনের জ্ঞানার্জনে উদগ্রীব থাকে। কেননা, ইলম ছাড়া যথার্থ শক্তিশালী মুমিন হওয়া সম্ভব নয়। আল্লাহ তাআলা বলেন,

قُلْ هَلْ يَسْتَوِي الَّذِينَ يَعْلَمُونَ وَالَّذِينَ لَا يَعْلَمُونَ ۗ

“বলুন, যারা জানে এবং যারা জানে না; তারা কি সমান হতে পারে?” (সূরা যুমার: ৯)

উত্তর হল, কখনও নয়। বরং আল্লাহ তাআলা যাকে ঈমানের পাশাপাশি ইলম দান করেছেন সে নি:সন্দেহে মর্যাদার দিক দিয়ে উন্নত। যেমন আল্লাহ তালা বলেন,

يَرْفَعِ اللَّـهُ الَّذِينَ آمَنُوا مِنكُمْ وَالَّذِينَ أُوتُوا الْعِلْمَ دَرَجَاتٍ ۚ

“তোমাদের মধ্যে যারা ঈমান এনেছে ও যাদেরকে ইলম দেওয়া হয়েছে আল্লাহ্‌ তাদের স্তরে স্তরে মর্যাদায় উন্নীত করবেন।” (সূরা মুজাদিলা: ১১)

তিনি আরও বলেন,

إِنَّمَا يَخْشَى اللَّـهَ مِنْ عِبَادِهِ الْعُلَمَاءُ

“আল্লাহর বান্দাদের মধ্যে জ্ঞানীরাই কেবল তাঁকে ভয় করে।” (সূরা ফাতির: ২৮)

নবীগণ যেহেতু মুমিনদের মধ্যে সর্বাধিক শক্তিশালী মুমিন ছিলেন সুতরাং তাদের রেখে যাওয়া ইলমের উত্তরাধিকারী রব্বানী আলেমগণও অন্যদের তুলনায় অধিকতর শক্তিশালী মুমিন। কারণ তারা আল্লাহ তাআলা সম্পর্কে যে জ্ঞান লাভ করেছে, অন্যরা তা পারে নি। আর এ কারণেই কেবল আলেমগণই আল্লাহ তাআলাকে সর্বাধিক ভয় করে।

❑ ৩) সবর বা ধৈর্য ধারণ:

শক্তিশালী মুমিনদের অন্যতম গুণ হল, তারা হন প্রচণ্ড ধৈর্যশীল। প্রকৃতপক্ষে দৃঢ় সংকল্প আর মানসিকভাবে শক্তিশালী লোকেরাই কেবল এ বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হয়। যেমন আল্লাহ তাআলা বলেন:

وَاصْبِرْ عَلَىٰ مَا أَصَابَكَ ۖإِنَّ ذَٰلِكَ مِنْ عَزْمِ الْأُمُورِ

“বিপদাপদে ধৈর্যধারণ কর। নিশ্চয় এটা দৃঢ় সংকল্পের বিষয়।” (সূরা লোকমান: ১৭)

পক্ষান্তরে দুর্বলরা হয় ধৈর্যহীন ও অস্থির। তারা বিপদে পড়লে খেই হারিয়ে ফেলে।

শক্তিশালী মুমিন সামাজিকভাবে মানুষের সাথে চলাফেরা করে আর মানুষ তাকে আচরণে কষ্ট দিলে ধৈর্যের পরিচয় দেয়। এ অবস্থায় ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে তার সাথে চলাফেরা-উঠবস অব্যাহত রাখা একমাত্র শক্তিশালী মুমিন দ্বারাই সম্ভব। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:

المؤمنُ الَّذي يخالطُ النَّاسَ ويصبرُ على أذاهم أعظمُ أجرًا منَ المؤمنِ الَّذي لاَ يخالطُ النَّاسَ ولاَ يصبرُ على أذاهم

“যে মুমিন মানুষের সাথে উঠবস করে এবং তারা কষ্ট দিলে তাতে ধৈর্য ধারণ করে সে অধিক প্রতিদানের অধিকারী হবে এমন মুমিন হতে যে মানুষের সাথে উঠবস করে না এবং তারা কষ্ট দিলে তাতে ধৈর্য ধারণ করে না।” (ইবনে মাজাহ, সহীহ-আলবানী, হা/৩২৭৩)

◯ সবর বা ধৈর্যের তিনটি ক্ষেত্রে রয়েছে। যথা:

● ক) ইবাদত বা আল্লাহর আনুগত্যে ধৈর্য ধারণ।
● খ) আল্লাহর অবাধ্যতা বা পাপাচার থেকে বাঁচার ক্ষেত্রে ধৈর্য ধারণ।
● গ) জীবনের বিভিন্ন ঘটনা-দুর্ঘটনা, বিপর্যয় ও দুর্বিপাকে ধৈর্য ধারণ।

❑ ৪) রাগ নিয়ন্ত্রণ:

শক্তিশালী মুমিন তার রাগ নিয়ন্ত্রণ করে। সে কখনও ব্যক্তি স্বার্থে রাগ করে না। কেউ তার প্রতি অবিচার করলে প্রতিশোধ নেয়ার ক্ষমতা থাকার পরও সে ক্ষমা করে দেয়।

রাগ নিয়ন্ত্রণকারী ব্যক্তিকে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ‘প্রকৃত বীর’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। যেমন: তিনি বলেন,

ليسَ الشَّديدُ بالصُّرَعةِ ، إنَّما الشَّديدُ الَّذي يملِكُ نفسَهُ عندَ الغضبِ

“প্রকৃত বীর সে ব্যক্তি নয়, যে কাউকে কুস্তিতে হারিয়ে দেয়। বরং সেই প্রকৃত বীর, যে রাগের সময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করে।” (বুখারী ও মুসলিম)

তবে আল্লাহর বিধান লঙ্ঘিত হলে বা অন্যায়-অপকর্ম দেখে মনে রাগ সৃষ্টি হওয়া অবশ্যই প্রশংসনীয় গুণ। অন্যায়, দুর্নীতি ও পাপাচারের পথ রোধ করতে এ রাগ অত্যন্ত জরুরি। যা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর মধ্যে বিদ্যমান ছিল।

❑ ৫) উচ্চাকাঙ্ক্ষা থাকা:

শক্তিশালী মুমিন হৃদয়ে উচ্চাকাঙ্ক্ষা লালন করে। তার স্বপ্ন হয় অনেক উঁচু। তার অভীষ্ট লক্ষ হয় বহু দূর। সে আখিরাতের প্রতিযোগিতায় বিজয় মুকুট পরিধান করতে চায়। তাই সে দুর্দান্ত বেগে ছুটে যায় আল্লাহর ক্ষমা ও জান্নাত লাভের আহ্বানে। আল্লাহ বলেন,

وَسَارِعُوا إِلَىٰ مَغْفِرَةٍ مِّن رَّبِّكُمْ وَجَنَّةٍ عَرْضُهَا السَّمَاوَاتُ وَالْأَرْضُ أُعِدَّتْ لِلْمُتَّقِينَ

“তোমরা তোমাদের পালনকর্তার ক্ষমা এবং জান্নাতের দিকে ছুটে যাও যার সীমানা হচ্ছে আসমান ও জমিন। যা তৈরি করা হয়েছে পরহেজগারদের জন্য।” (সূরা আলে ইমরান: ১৩৩)

শক্তিশালী ঈমান ছাড়া এই প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়ার সম্ভব নয়। এ জন্য অনেক ত্যাগ শিকার করতে হয়। অনেক পরিশ্রম আর কষ্ট করতে হয়। যেমন শীতের রাতেও ওযু করে ফজর সালাতে যাওয়া, রাত জেগে কুরআন তিলাওয়াত, তাহাজ্জুদের সালাত, নফল রোযা, নিজের অভাব থাকা সত্যেও অসহায় মানুষের সাহায্য, কু প্রবৃত্তিকে দমন করে দ্বীনের পথে টিকে থাকা, প্রয়োজনে আল্লাহর পথে জিহাদে নিজের জান-মাল সর্বস্ব অকাতরে বিলিয়ে দেয়া ইত্যাদি।

উচ্চাকাঙ্ক্ষার একটি উদাহরণ হল,আল্লাহর নিকট সবচেয়ে উঁচু জান্নাতের জন্য দুআ করা। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শিক্ষা দিয়েছেন:

إِذَا سَأَلْتُمُ اللَّهَ فَاسْأَلُوهُ الْفِرْدَوْسَ ، فَإِنَّهَا أَوْسَطُ الْجَنَّةِ ، وَأَعْلَى الْجَنَّةِ ، وَفَوْقَهُ عَرْشُ الرَّحْمَنِ ، وَمِنْهُ يُفَجَّرُ أَنْهَارُ الْجَنَّةِ

“তোমরা যখন আল্লাহর নিকট জান্নাত কামনা করবে তখন জান্নাতুল ফিরদউস কামনা করবে। কারণ, তা হল, উৎকৃষ্ট ও উন্নততর জান্নাত। এ জান্নাতের উপর রয়েছে পরম করুণাময় আল্লাহর আরশ। তা হতে জান্নাতের নহর সমূহ প্রবাহিত হয়”। (সহীহুল বুখারী ২৭৯০,৭৪২৩)

❑ ৬) উদ্যমী হওয়া:

শক্তিশালী মুমিনের অন্যতম সেরা গুণ হল, তার অন্তরে প্রচণ্ড উদ্যম ও স্প্রিহা কাজ করে। সে কখনও অলসতাকে সুযোগ দেয় না। কেননা অলসতাকে আশ্রয় দেয়া মানে, শয়তানের নিকট নিজেকে সঁপে দেয়া। যে নিজেকে শয়তানের কাছে সঁপে দেয় তার ধ্বংস অনিবার্য।

সামগ্রিকভাবে অকর্মণ্যতা,অলসতা, ভীরুতা ইত্যাদি দোষগুলো মানুষের উন্নতির পথে অন্তরায়। তাই তো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ সব দোষ-ত্রুটি থেকে আল্লাহর নিকট আশ্রয় চেয়েছেন এবং আশ্রয় চাওয়ার জন্য তার উম্মতকে দুআ শিক্ষা দিয়েছেন।

আনাস রা. থেকে বর্ণিত,রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ দুআ করতেন:

اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنَ الهَمِّ وَالحَزَنِ، وَالعَجْزِ وَالكَسَلِ، وَالجُبْنِ وَالبُخْلِ، وَضَلَعِ الدَّيْنِ، وَغَلَبَةِ الرِّجَالِ.

“হে আল্লাহ! আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাই বিষণ্ণতা ও দুশ্চিন্তা থেকে, অক্ষমতা ও অলসতা থেকে, ভীরুতা ও কার্পণ্য থেকে, ঋণের বোঝা ও মানুষের প্রাবল্য (এর শিকার হওয়া) থেকে।” (সহীহ বুখারী, হাদিস ৬৩৬৯)

❑ ৭) নিজের সংশোধনের পাশাপাশি অন্যের সংশোধনের প্রচেষ্টা থাকা:

শক্তিশালী মুমিন কেবল নিজের সংশোধনকেই যথেষ্ট মনে করে না। বরং আল্লাহ তাকে যে শক্তি ও সামর্থ্য দিয়েছে তা পরিপূর্ণভাবে ব্যবহার করে অন্যকেও সংশোধনের কাজে ব্রতী হয়।

আবু সাঈদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন: আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কে বলতে শুনেছি :

مَنْ رَأَى مِنْكُم مُنْكراً فَلْيغيِّرْهُ بِيَدهِ ، فَإِنْ لَمْ يَسْتَطعْ فبِلِسَانِهِ ، فَإِنْ لَمْ يَسْتَطِعْ فَبقَلبهِ وَذَلَكَ أَضْعَفُ الإِيمانِ

“তোমাদের কেউ যখন কোন খারাপ কাজ হতে দেখবে তখন সে যেন তা হাত দ্বারা পরিবর্তন করে দেয়। যদি সে এ সামর্থ্য না রাখে তাহলে যেন মুখ দিয়ে পরিবর্তন করে (মুখে প্রতিবাদ করে)। যদি এ সামর্থ্যও না থাকে তাহলে অন্তরে (ঘৃণা করে এবং পরিবর্তনের পরিকল্পনা আঁটতে থাকে)। আর এটি হচ্ছে ঈমানের দুর্বলতার স্তর।” (সহীহ মুসলিম)

এ হাদিসে অন্যায় প্রতিহত করার তিনটি স্তর বলা হয়েছে। এ তিনটি মধ্যে ১ম স্তরটি অর্থাৎ হাত দ্বারা বা শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে পরিবর্তন করা এর পরের দুটি স্তর থেকে নি:সন্দেহ অধিক উত্তম। তবে তা শক্তি ও সামর্থ্যের উপর নির্ভরশীল। অর্থাৎ যদি কারও অন্যায় প্রতিরোধের জন্য পর্যাপ্ত শক্তি ও সামর্থ্য থাকে তাহলে তা ব্যবহার করে অন্যায় পরিবর্তন করবে। আর এটি হল শক্তিশালী মুমিনের বৈশিষ্ট্য।

❑ ৮) মানুষের উপকার করা:

আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:

خَيْرُ النَّاسِ أَنْفَعُهُمْ لِلنَّاسِ

“সে ব্যক্তি শ্রেষ্ঠ যে সবচেয়ে বেশি মানুষের উপকার করে।” (সিলসিলা সহীহাহ, হাসান)

শক্তিশালী মুমিনের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হল, সে শুধু নিজের স্বার্থ নিয়েই ভাবে না বরং মানুষের কল্যাণে অবদান রাখে। সে আর দশজন মানুষের মত নয়। সে বিপদে মানুষকে সাহায্য করে, অন্ধকারে আলো জ্বালায়, জ্ঞানহীনকে জ্ঞানদান করে, রোগীর সেবা করে, কেউ পরামর্শ চাইলে সুপরামর্শ দিয়ে সাহায্য করে, মাজলুমকে রক্ষা করে, দু:শ্চিন্তাগ্রস্থ মানুষের মনে সান্ত্বনা দেয়, হতাশার অন্ধকারে আশার আলো জ্বালায়.. এভাবে যেখানে যতটুকু সম্ভব সেখানে ততটুকু মানুষের কল্যাণে নিজের মেধা, যোগ্যতা, অর্থ ও শ্রম দ্বারা উপকার করতে ছুটে যায়। এটি হল শক্তিশালী মুমিনের পরিচয়।

 ◯ আবু বকর (রা.): আমাদের প্রেরণা:

আবু হুরায়রা রা. হতে বর্ণিত। তিনি বলেন,

مَنْ أَصْبَحَ مِنْكُمُ الْيَوْمَ صَائِمًا؟» قَالَ أَبُو بَكْرٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ: أَنَا، قَالَ: «فَمَنْ تَبِعَ مِنْكُمُ الْيَوْمَ جَنَازَةً؟ قَالَ أَبُو بَكْرٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ: أَنَا، قَالَ: «فَمَنْ أَطْعَمَ مِنْكُمُ الْيَوْمَ مِسْكِينًا؟» قَالَ أَبُو بَكْرٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ: أَنَا، قَالَ: «فَمَنْ عَادَ مِنْكُمُ الْيَوْمَ مَرِيضًا؟» قَالَ أَبُو بَكْرٍ رَضِيَ اللهُ عَنْهُ: أَنَا، فَقَالَ رَسُولُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «مَا اجْتَمَعْنَ فِي امْرِئٍ، إِلَّا دَخَلَ الْجَنَّةَ- مسلم

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জিজ্ঞেস করলেন: তোমাদের মধ্যে আজ কে রোযা রেখেছে?

আবু বকর (রা.): আমি।

রাসূল (সা.) : তোমাদের মধ্যে আজ কে জানাজায় হাজির হয়েছে?

আবু বকর (রা.): আমি।

রাসূল (সা.) : তোমাদের মধ্যে আজ কে অসহায়কে খাবার দিয়েছে?

আবু বকর (রা.): আমি।

রাসূল (সা.) : তোমাদের মধ্যে আজ কে রোগীর সেবা-যত্ন করেছে?

আবু বকর (রা.): আমি।

রাসূল (সা.): ‘‘যার মধ্যে উক্ত বৈশিষ্ট্যগুলো একত্রিত হয় সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’’ (সহীহ মুসলিম/১০২৮)

❑ ৯) সুস্বাস্থ্য:

একজন সুস্থ, সবল ও মজবুত মানুষ দ্বারা যেভাবে দ্বীন ও দুনিয়ার কাজ করা সম্ভব দুর্বল ও অসুস্থ মানুষ দ্বারা কখনো তা সম্ভব নয়। তাই তো দুনিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী মুমিন প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজে সুস্থ থাকার জন্য দুআ করতেন,রোগ হলে চিকিৎসা করতেন এবং লোকদেরকে চিকিৎসা করতে উৎসাহিত করতেন। শুধু তাই নয় বরং নিজেও রোগ-ব্যাধির প্রেসক্রিপশন দিতেন।

সুস্থতার ব্যাপার নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:

نِعْمَتَانِ مَغْبُونٌ فِيهِمَا كَثِيرٌ مِنَ النَّاسِ: الصِّحَّةُ وَالْفَرَاغُ

“দুটি নেয়ামতের বিষয়ে অধিকাংশ মানুষ অসতর্ক ও প্রতারিত। সে দুটি হল, সুস্থতা এবং অবসর সময়।”(সহীহুল বুখারী ৫/২৩৫৭)

শারীরিক শক্তি আল্লাহ তায়ালার অন্যতম শ্রেষ্ঠ নেয়ামত। তাই তো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পাঁচটি অমূল্য সম্পদ হারানোর পূর্বে এগুলোর কদর করার কথা বলেছেন। তিনি বলেন,

اغْتَنِمْ خَمْسًا قَبْلَ خَمْسٍ: شَبَابَكَ قَبْلَ هِرَمِكَ، وَصِحَّتَكَ قَبْلَ سَقَمِكَ، وَغِنَاءَكَ قَبْلَ فَقْرِكَ، وَفَرَاغَكَ قَبْلَ شُغْلِكَ، وَحَيَاتَكَ قَبْلَ مَوْتِكَ

“পাঁচটি জিনিসকে পাঁচটি জিনিস আসার আগে গনিমতের অমূল্য সম্পদ হিসেবে মূল্যায়ন কর:

● (১) জীবনকে মৃত্যু আসার আগে।
● (২) সুস্থতাকে অসুস্থ হওয়ার আগে।
● (৩) অবসর সময়কে ব্যস্ততা আসার আগে।
● (৪) যৌবনকে বার্ধক্য আসার আগে এবং
● (৫) সচ্ছলতাকে দরিদ্রতা আসার আগে।”
(মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা ৮ম খণ্ড, ৮ম অধ্যায় ১২৭ পৃষ্ঠা। আল্লামা আলবানী রহ., হাদিসটি সহীহ বলেছেন। দ্রঃ সহীহুল জামে, হাদিস নং ১০৭৭)

শক্তিশালী মুমিন ব্যক্তি তার শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য, পানীয়, ঘুম, বিশ্রাম ইত্যাদির প্রতি যত্নশীল হয়। সে মনে করে, শারীরিক সুস্থতা ও দৈহিক বল তাকে ইবাদত-বন্দেগী, দ্বীনের কাজ, পাশাপাশি হালাল অর্থ উপার্জন এবং মানব কল্যাণে অবদান রাখতে সাহায্য করবে।

মোটকথা,  দৈহিক শক্তি এবং সুস্থতাকে সে দ্বীন ও দুনিয়ার ভালো কাজে অবদান রাখার মাধ্যম মনে করে।

❑ ১০) মজবুত চিন্তাভাবনা ও সুনিপুণ পরিকল্পনা:

মজবুত ইমানদারের একটি গুণ হল, তার চিন্তা-চেতনা, কথা-বার্তা, বক্তব্য, সিদ্ধান্ত, যুক্তি, বিচার-বিবেচনা ইত্যাদি সব কিছু হয় মজবুত এবং সূক্ষ্ম। সে ইবাদত-বন্দেগী, কাজে-কর্ম সকল ক্ষেত্রেই সুদৃঢ়,সুনিপুণ এবং যত্নশীল।

আল্লাহ তাআলা বলেন:

فَإِذَا عَزَمْتَ فَتَوَكَّلْ عَلَى اللَّهِ إِنَّ اللَّهَ يُحِبُّ الْمُتَوَكِّلِينَ

“যখন তুমি দৃঢ়ভাবে ইচ্ছা করবে, তখন আল্লাহর উপর ভরসা করবে। নিশ্চয় আল্লাহ্‌ ভরসা কারীদের ভালবাসেন।” (সূরা আল ইমরান: ১৫৯)

মজবুত কাজকে আল্লাহ তাআলাও পছন্দ করেন। উম্মুল মুমিনীন আয়েশা রা. হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,

إنَّ اللهَ تعالى يُحِبُّ إذا عمِلَ أحدُكمْ عملًا أنْ يُتقِنَهُ

“নিশ্চয় আল্লাহ এটা পছন্দ করেন যে, তোমাদের কেউ কোন কাজ করলে তা যেন মজবুত ভাবে করে।” (সহীহুল জামে, হা/১৮৮০, হাসান)

❑ ১১) সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে নির্ভীক:

মুমিন ব্যক্তি সত্য, ন্যায়-নীতি, সততার পক্ষে থাকে নির্ভীক। এ ক্ষেত্রে সে সমালোচনা কারী সমালোচনাকে পরোয়া করে না। বাতিলের বিরুদ্ধে থাকে স্পাত কঠিন। সে সৎ ও কল্যাণকামী। তোষামোদি ও ছলচাতুরীকে প্রশ্রয় দেয় না। যে দিকে বৃষ্টি সেদিকে ছাতা ধরে না বরং সৎসাহস বুকে নিয়ে নির্ভিক ভাবে ঝড়ের বিপরীতে পথ চলে।

এই সাহসী ব্যক্তিরাই সমাজের অন্যায়, অপকর্ম ও বাতিলের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। যেমন রুখে দাঁড়িয়েছিলেন মুসলিম জাতির পিতা ইবরাহীম আ.। যেমন রুখে দাঁড়িয়েছিলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং তার জানবাজ সাহসী সাহাবীগণ।

❑ ১২) আত্মমর্যাদা ওপরিচ্ছন্ন অন্তর:

শক্তিশালী মুমিন হয় আত্মমর্যাদা সম্পন্ন ও পরিচ্ছন্ন অন্তরের অধিকারী। সে অহংকার করে না বরং বিনয় ও নম্রতা তার চরিত্রের ভূষণ। সে অর্থলিপ্সু বা লোভাতুর হয় না। সে হীন চরিত্রের অধিকারী নয়। অর্থের প্রয়োজন হলেও তার আত্মমর্যাদা তাকে অর্থলিপ্সু বানায় না। আল্লাহ তাআলা বলেন,

وَمَن يُوقَ شُحَّ نَفْسِهِ فَأُولَـٰئِكَ هُمُ الْمُفْلِحُونَ

“যাদেরকে মনের লিপ্সা থেকে মুক্ত রাখা হয়েছে তারাই সফলকাম।” (সূরা আল হাশর: ৯)

❑ ১৩) শক্তিশালী মুমিনের হৃদয় হয় ভালবাসা, দয়া ও মায়া–মমতায় পূর্ণ। সে কৃতজ্ঞ চিত্তের অধিকারী। সে কারও প্রতি ব্যক্তিগত কারণে ঘৃণা-বিদ্বেষ পোষণ করে না বরং সে কাউকে ভালবাসলে বা ঘৃণা করলে তা হয় একমাত্র আল্লাহ তাআলাকে কেন্দ্র করে।

❑ ১৪) ভুল স্বীকার: শক্তিশালী ইমানদারের একটি গুণ হল, ভুল হলে সে নির্দ্বিধায় স্বীকার করে। ভুল সংশোধন করে। সে আল্লাহর নির্ধারিত সীমা অতিক্রম করে না। এটি সম্মানিত ব্যক্তিদের গুণ।

◯ সুদৃঢ় ঈমানের আলামত:

● ১) আল্লাহ এবং রাসূল যা ভালবাসেন তা নিজের চাহিদা, রুচি এবং ভালবাসার উপর অগ্রাধিকার দেয়া।
● ২) আল্লাহর জন্য নিজের জান- মাল, সহায়-সম্পত্তি উৎসর্গ করা।
● ৩) আল্লাহ এবং তার রাসূল যাকে ভালবাসেন তাকে ভালবাসা আর তারা যাকে ঘৃণা করেন তাকে ঘৃণা করা।
● ৪) তকদীর তথা আল্লাহর ফয়সালার উপর সন্তুষ্ট থাকা এবং যতই বিপদ আসুক না কেন মনঃক্ষুণ্ণ ও হতাশ না হওয়া।
● ৫) স্বতঃস্ফূর্তভাবে আল্লাহর ইবাদত করা এবং পাপাচার থেকে বেঁচে থাকা।
● ৬) আল্লাহর জিকিরের সময় মনে তৃপ্তি ও প্রফুল্লতা অনুভব করা। আল্লাহ বলেন,
الَّذِينَ آمَنُوا وَتَطْمَئِنُّ قُلُوبُهُم بِذِكْرِ اللَّـهِ ۗ أَلَا بِذِكْرِ اللَّـهِ تَطْمَئِنُّ الْقُلُوبُ

“যারা বিশ্বাস স্থাপন করে এবং তাদের অন্তর আল্লাহর জিকির দ্বারা শান্তি লাভ করে; জেনে রাখ, আল্লাহর জিকির দ্বারাই অন্তর সমূহ শান্তি পায়।” (সূরা রা’দ: ২৮)

তিনি আরও বলেন,

إِنَّمَا الْمُؤْمِنُونَ الَّذِينَ إِذَا ذُكِرَ اللَّـهُ وَجِلَتْ قُلُوبُهُمْ وَإِذَا تُلِيَتْ عَلَيْهِمْ آيَاتُهُ زَادَتْهُمْ إِيمَانًا وَعَلَىٰ رَبِّهِمْ يَتَوَكَّلُونَ

“যারা ঈমানদার, তারা এমন যে, যখন আল্লাহর নাম নেয়া হয় তখন তাদের অন্তর ভীত হয়ে পড়ে । আর যখন তাদের সামনে তার আয়াতগুলো পাঠ করা হয় তখন তাদের ঈমান বেড়ে যায় এবং তারা তাদের প্রতিপালকের উপর ভরসা করে।” (সূরা আনফাল: ২)

● ৭) নেকির কাজে আনন্দ এবং গুনাহর কাজে অস্থিরতা অনুভব করা। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,
من سرَّتْهُ حسنتُهُ وساءتْهُ سيئتُه فهو مؤمنٌ

“মুমিন তো সেই ব্যক্তি যার অন্তর নেক কাজে খুশি হয় আর পাপকাজে কষ্ট অনুভব করে।”

(সহীহুল জামে, হা/৬২৯৪, সহীহ)

পরিশেষে, মহান রবের নিকট দুআ করি, তিনি যেন আমাদেরকে সে ঈমান অর্জনের তাওফিক দান করেন যার উপর তিনি সন্তুষ্ট। তিনি যেন আমাদের দুর্বলতাগুলো শক্তিতে রূপান্তরিত করে দেন, অভাবগুলো মোচন করেন এবং গুনাহগুলো ক্ষমা করে দেন। নিশ্চয় তিনি সর্বশক্তিমান, পরম দয়ালু,  দাতা ও ক্ষমাশীল।
▬▬▬▬ ◐◯◑ ▬▬▬▬
লেখক:
আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
(লিসান্স, মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, সউদী আরব)
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সউদ আরব
https://www.facebook.com/Abdllahilhadi/

22
বাসায় বসে কোভিড ১৯ এর মৃদু ও মাঝারি মাত্রার সংক্রমণের চিকিৎসা বাবস্থ্যপনা ও প্রতিষেধক ঔষধ গ্রহণ সংক্রান্ত নির্দেশনা

Pls see the atached file where you will get detailed guidleine on বাসায় বসে কোভিড ১৯ এর মৃদু ও মাঝারি মাত্রার সংক্রমণের চিকিৎসা বাবস্থ্যপনা ও প্রতিষেধক ঔষধ গ্রহণ সংক্রান্ত নির্দেশনা

23
উচ্চশিক্ষায় করোনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় করণীয়

করোনা মহামারি আমাদের অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে; সেই সঙ্গে কিছু সম্ভাবনার দ্বারও উন্মুক্ত করেছে। পৃথিবীর প্রায় সব সেক্টরই কমবেশি এ মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত; শিক্ষাক্ষেত্রও এর ব্যতিক্রম নয়। সারা জীবন যে শিক্ষকরা প্রচলিত টিচিং-লার্নিংয়ে অভ্যস্ত, তাদের পক্ষে কোনোরকম প্রস্তুতি ছাড়া ব্লেন্ডেড, অনলাইন বা ডিজিটাল এডুকেশনে ক্লাস নেওয়া, ছাত্রছাত্রীদের মূল্যায়ন করা সহজ নয়।


বিগত এক বছরের অধিক সময় ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অনেক বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, কর্মকর্তাদের জীবন-জীবিকার তাগিদে বিকল্প রোজগারের পথ খুঁজতে হয়েছে; সেটি নার্সারি, প্রাথমিক বা উচ্চশিক্ষা- সবার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। অনেকে বিকল্প রোজগারের পথ না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। আর দীর্ঘদিন ক্লাস ও পরীক্ষা না হওয়ায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে হতাশা এবং বিপথে যাওয়ার প্রবণতা তৈরি হয়েছে।

আমরা ডিজিটালি অনেক দূর এগিয়েছি সত্য; কিন্তু উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে এখনো ডিজিটাল এডুকেশনের প্রয়োগ যেমনটি হওয়া উচিত ছিল, তা দেখতে পাইনি। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যেই সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন ন্যাশনাল ব্লেন্ডেড লার্নিং মেথডের রূপরেখা প্রণয়নের কাজ শুরু করেছে।

প্রথমেই আমরা ফেস-টু-ফেস, অনলাইন, ব্লেন্ডেড, ডিজিটাল এবং এ সম্পর্কিত বিষয়গুলো একটু পরিষ্কারভাবে জেনে নিই। প্রচলিত পদ্ধতিতে আমরা যেভাবে সরাসরি ক্লাসরুমে পাঠদান করাই; সেটিকে ফেস-টু-ফেস এডুকেশন বলি, যেমন- ক্লাসরুমে সরাসরি গিয়ে লেকচার প্রদান। ইন্টারনেটভিত্তিক যে কোনো পাঠদান পদ্ধতিকে অনলাইন এডুকেশন বলতে পারি, যেমন- জুম বা গুগল মিট-এর মাধ্যমে আমরা যে ক্লাসগুলো নিয়ে থাকি।

আর ফেস-টু-ফেস এবং অনলাইন এডুকেশনের সংমিশ্রণকে আমরা ব্লেন্ডেড এডুকেশন বলতে পারি, যেমন- সপ্তাহের পাঁচ দিনের ক্লাস শিডিউলের মধ্যে তিন দিন সরাসরি ক্লাসরুমে এবং দুদিন অনলাইনে পাঠদান করলে সেটা ব্লেন্ডেড এডুকেশন। তবে যে কোনো ধরনের পাঠদান পদ্ধতিকে আমরা ডিজিটাল এডুকেশন বলতে পারি; যদি সেটি ডিজিটাল প্রযুক্তি বা আইসিটি’র সাহায্যে পরিচালিত হয়, যেমন- মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তির মাধ্যমে সরাসরি কোনো ক্লাস নিলে সেটি ডিজিটাল এডুকেশন। আর ব্লেন্ডেড বা অনলাইন এডুকেশন যেহেতু ডিজিটাল টেকনোলজি ছাড়া সম্ভব নয়; তাই উভয় পদ্ধতিই ডিজিটাল এডুকেশনের মধ্যে পড়ে।

বর্তমানে নতুন একটি কনসেপ্ট জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে আর তা হচ্ছে- ফিজিটাল এডুকেশন, যা ফিজিক্যাল এবং ডিজিটাল এডুকেশনের একটি সমন্বিত প্রচেষ্টা। এটি ব্লেন্ডেড এডুকেশন থেকে কিছুটা ভিন্ন; কারণ ব্লেন্ডেড পদ্ধতিতে ফেস-টু-ফেস এবং অনলাইন দুটিই পাশাপাশি চলে আর ফিজিটাল পদ্ধতিতে ফেস-টু-ফেস (ফিজিক্যাল) ও অনলাইন (ডিজিটাল) দুটো পদ্ধতির সেরা প্র্যাকটিসগুলো ইন্টিগ্রেট করে পাঠদান করা হয়। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, রোবোটিক্স ক্লাসে ছাত্রছাত্রীদের রোবোটের সঙ্গে ইন্টারঅ্যাকশন; একটি ক্লাসের এক-তৃতীয়াংশ ছাত্রছাত্রী সরাসরি এবং দুই-তৃতীয়াংশ অনলাইনে একই সময়ে ক্লাস করা। এক্ষেত্রে স্টুডেন্ট এনগেজমেন্ট এবং লার্নিং আউটকাম তুলনামূলক ভালো হয়।

এখন মূল আলোচনায় আসা যাক। ব্লেন্ডেড, অনলাইন ও ডিজিটাল শিক্ষাকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়াই আমাদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। দুর্বল গতির ইন্টারনেট, আর্থ-সামাজিক অবস্থার নিরিখে ডিভাইস ও উচ্চমূল্যের ইন্টারনেট, শিক্ষকদের ডিজিটাল দক্ষতা বৃদ্ধিতে অনীহা, ডিজিটাল এডুকেশন সম্পর্কে মানুষের নেতিবাচক ধারণা; সর্বোপরি একটি সামষ্টিক ও গ্রহণযোগ্য ডিজিটাল এডুকেশন পলিসির অভাব এদেশের সব স্তরে ডিজিটাল এডুকেশন বাস্তবায়ন ও প্রসারে সবচেয়ে বড় বাধা।

তবে সবার জন্য ডিজিটাল এডুকেশন নিশ্চিত করতে হলে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে একটি করে কেন্দ্রীয়ভাবে ম্যানেজড ও কাস্টমাইজড লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (এলএমএস) যেমন মুডল, ক্যানভাস, ব্ল্যাকবোর্ড বা ন্যূনতম গুগল ক্লাসরুমের যে কোনো একটি অবশ্যই থাকা উচিত। এ ছাড়া সব একাডেমিক এবং প্রশাসনিক কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ, ব্যবস্থাপনা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে স্মার্ট এডুকেশন টাইপের প্লাটফর্ম খুবই জরুরি।

শিক্ষক ও কর্মকর্তারা যাতে নিয়মিতভাবে এ প্লাটফর্মগুলো ব্যবহার করে তার জন্য প্রয়োজনীয় ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। ডিজিটাল শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষকদের প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্টের কোনো বিকল্প নেই; বিশেষ করে একাডেমিয়া ও ইন্ডাস্ট্রি প্রাকটিসের দূরত্ব নিরসনে এবং শিক্ষকদের নৈতিক মূল্যবোধ ও প্রফেশনালিজম তৈরিতে। এক্ষেত্রে ম্যাসিভ ওপেন অনলাইন কোর্স (মুক) খুবই উপযোগী প্লাটফর্ম হতে পারে। শিক্ষার্থীদের ফিডব্যাক এবং শিক্ষকদের জবাবদিহিতা- এ দুটি বিষয়কে সামনে রেখে ডিজিটাল এডুকেশন পরিচালনা করা উচিত।

শিক্ষার্থীদের ফিডব্যাক নিয়মিত এনালিসিস করে সামগ্রিক প্রক্রিয়ায় নিয়মিত পরিবর্তন আনতে হবে। শিক্ষকদের প্রতি মাসে ন্যূনতম কয়েকটি বিষয়ের উপর একটি সামগ্রিক রিপোর্টিং জমা নেওয়া যেতে পারে স্মার্ট এডুকেশনের মতো প্লাটফর্মে; যেগুলোর মধ্যে থাকবে স্টুডেন্ট ফিডব্যাক, রিসার্চ অ্যাক্টিভিটি, সেলফ ডেভেলপমেন্ট, অ্যাটেনডেন্স, স্টুডেন্ট অ্যাক্টিভিটি কমপ্লিশন, প্রেজেন্টেশন ইত্যাদি। এগুলোর ওপর ভিত্তি করে শিক্ষকদের মাসিক মূল্যায়ন এবং প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রাতিষ্ঠানিকভাবে দিতে পারলে কোয়ালিটি এডুকেশন নিশ্চিত করা সহজ হবে।

দেশের কয়েকটি পাবলিক এবং প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি ডিজিটাল এডুকেশন সেক্টরে ভালো করছে। যেমন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটি, বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেসনালস ইত্যাদি। এর মধ্যে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটিকে ব্লেন্ডেড, অনলাইন এবং ডিজিটাল এডুকেশনে বাংলাদেশের শীর্ষ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসাবে ধরা হয়। ২০১৩ সালে ব্লেন্ডেড লার্নিং সেন্টারের মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ডিজিটাল এডুকেশন শুরু করেছিল ড্যাফোডিল। বর্তমানে নিজস্ব এলএমএস, মুক প্ল্যাটফরম এবং স্মার্ট এডুসিস্টেমসহ অসংখ্য সল্যুশন নিয়ে টিচিং-লার্নিং পরিচালনা করছে প্রতিষ্ঠানটি।

এক্ষেত্রে ওয়ান স্টুডেন্ট, ওয়ান ল্যাপটপ কর্মসূচির অধীনে ৩০ হাজারেরও অধিক ল্যাপটপ শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে নর্থ-সাউথ ইউনিভার্সিটি ক্যানভাস এলএমএস এবং ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি এডেক্স প্লাটফর্মের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। পাবলিক ইউনিভার্সিটির মধ্যে বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেসনালস, শাহজালাল ইউনিভার্সিটিসহ আরও কিছু প্রতিষ্ঠান করোনা মহামারির শুরু থেকে বিভিন্ন প্লাটফর্মের মাধ্যমে শিক্ষাক্রম পরিচালনা করে আসছে।

অনলাইন এডুকেশনের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হলো অ্যাসেসমেন্ট পদ্ধতি। আমাদের দেশে মোট মার্কের বেশিরভাগ (৭০-৮০ শতাংশ) বরাদ্দ থাকে সেমিস্টার ফাইনাল/মিডটার্ম পরীক্ষায়, যা আধুনিক অ্যাসেসমেন্ট সিস্টেমের সঙ্গে মোটেও মানানসই নয়। অন্যদিকে, অনলাইনে প্রক্টরড এক্সামের সাফল্য আশাব্যঞ্জক নয়; বিশেষ করে আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশে। এক্ষেত্রে মিক্সড পদ্ধতি কার্যকর হতে পারে। ৬০-৭০ শতাংশ মার্ক অনলাইনে অথেনটিক অ্যাসেসমেন্টের মাধ্যমে হতে পারে; যেমন- ক্রিয়েটিভ অ্যাসাইনমেন্ট, কুইজ, কেস স্টাডিস, প্রেজেন্টেশন, প্রজেক্ট ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদি।

আর বাকি ৩০-৪০ শতাংশ মার্কের জন্য ট্রাডিশনাল এক্সাম পদ্ধতি ব্যবহার করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ওপেন ও ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার নিয়ে একটি কনসোর্টিয়াম গঠন করা যেতে পারে। এর ফলে দেশব্যাপী তাদের বিশাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার কাজে লাগিয়ে সত্যিকারের ব্লেন্ডেড অনলাইন এডুকেশন; বিশেষ করে অ্যাসেসমেন্ট, কাউন্সেলিং, ভিডিও স্ট্রিমিং সুবিধাগুলো বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

অনলাইন এডুকেশনের নিজস্ব কোনো সমস্যা নেই। যে প্রতিষ্ঠান এটি পরিচালনা করবে, তার গ্রহণযোগ্যতা এক্ষেত্রে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এক্ষেত্রে স্থিতিশীল এলএমএস প্ল্যাটফরম এবং প্রয়োজনীয় দক্ষ জনবল থাকা অত্যাবশ্যকীয়। দেশে প্রতিবছর যত শিক্ষার্থী উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে, তাদের সবার জন্য নিরবচ্ছিন্ন কার্যকর শিক্ষার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হলে অনলাইন ডিজিটাল এডুকেশনের বিকল্প নেই।

সরকারের পক্ষ থেকে ডিজিটাল এডুকেশন বাস্তবায়নে সব ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা ও নীতিমালা নির্ধারণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। যেমন- ডিজিটাল এডুকেশন প্ল্যাটফরমগুলো অ্যাকসেস করতে নামমাত্র মূল্যে শিক্ষার্থীদের ইন্টারনেট সুবিধা দেওয়া, লাইব্রেরি থেকে লোন হিসাবে ডিভাইস দেওয়া, শিক্ষকদের প্রমোশনে অনলাইন ট্রেনিং সার্টিফিকেশন অন্তর্ভুক্ত করা, সক্ষমতা অনুসারে সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে প্রাথমিকভাবে কিছু কোর্স অনলাইনে পরিচালনা করতে অনুমতি দেওয়া, কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্সটাকে গুরুত্ব দেওয়া ইত্যাদি।

বর্তমানে বাংলাদেশের মাত্র দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন শিক্ষা দেওয়ার প্রাতিষ্ঠানিক অনুমোদন আছে। যেহেতু ডিজিটাল বাংলাদেশ বর্তমান সরকারের একটি অগ্রাধিকারমূলক কর্মসূচি; তাই ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির মতো যারা অনেক বছর ধরে ডিজিটাল এডুকেশনে সাফল্য দেখিয়ে আসছে, তাদের শর্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় অনুমতি দিলে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে তারাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারবে। চলুন, সবার জন্য ডিজিটাল ও কার্যকর শিক্ষা নিশ্চিত করি। তখন আপনাকে আর চাকরি খুঁজতে হবে না, চাকরিই আপনাকে খুঁজবে।

ড. মো. আকতারুজ্জামান :
ডিজিটাল শিক্ষা বিশেষজ্ঞ;
পরিচালক, ব্লেন্ডেড লার্নিং সেন্টার,
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা
director.blc@daffodilvarsity.edu.bd

Source: https://www.jugantor.com/todays-paper/sub-editorial/438402/%E0%A6%89%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9A%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%9E%E0%A7%8D%E0%A6%9C-%E0%A6%AE%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%A3%E0%A7%80%E0%A7%9F

24
ব্যাক্তিত্ব গঠনের ক্ষেত্রে ❝সূরা হুজুরাত❞ থেকে কয়েকটি উপদেশ—

১. উপহাস করো না। [আয়াত-১১]
২. দোষারোপ করো না।[আয়াত-১১]
৩. মন্দ নামে ডেকো না। [আয়াত-১১]
৪. পশ্চাতে নিন্দা করো না। [আয়াত-১২]
৫. সন্দেহ করা থেকে বিরত থাকো। [আয়াত-১৫]
৬. ধারণা করা থেকে বিরত থাকো। [আয়াত-১২]
৭. গোপনীয় বিষয়ের সন্ধান করো না।[আয়াত-১২]
৮. ফাসিকের কথা যাচাই ব্যতিরেকে বিশ্বাস করো না।[আয়াত-৬]
৯. বিবাদমান দুটি পক্ষের ঝামেলা ন্যায়পন্থায় মীমাংসা করবে।[আয়াত-৯]
১০.সর্বাবস্থায় ইনসাফ করবে।[আয়াত-৮]

প্রকৃতপক্ষে একজন বিশ্বাসী ব্যক্তির চরিত্র কেমন হওয়া উচিত তা-ই উক্ত সূরার মূল উপজীব্য বিষয়। আশা করা যায় চরিত্র ও ব্যাক্তিত্ব গঠনে পবিত্র কোরআনের উক্ত সূরা আপনাকে দারুণভাবে প্রভাবিত করবে। পড়ার আহ্বান রইল।

সূরা হুজুরাত
অধ্যায় নম্বরঃ৪৯
আয়াত সংখ্যাঃ১৮

25
“পর্চা”, “দাগ”, “খতিয়ান”, “মৌজা”, “জমা খারিজ”, “নামজারি”, “তফসিল” ইত্যাদি বিষয়ের ডেফিনেশন? এবং জেনে নিন ভূমি বিষয়ক জরুরী সব তথ্য..


১!“নামজারী” বা মিউটেশন কাকে বলে?
ক্রয়সূত্রে/উত্তরাধিকার সূত্রে অথবা যেকোন সূত্রে জমির নতুন মালিক হলে নতুন মালিকের নাম সরকারি খতিয়ানভুক্ত করার প্রক্রিয়াকে নামজারী বলা হয়।

২!“জমা খারিজ”কাকে বলে?
যৌথ জমা বিভক্ত করে আলাদা করে নতুন খতিয়ান সৃষ্টি করাকে জমা খারিজ বলে। অন্য কথায় মূল খতিয়ান থেকে কিছু জমির অংশ নিয়ে নতুন জোত বা খতিয়ান সৃষ্টি করাকে জমা খারিজ বলে।

৩!“খতিয়ান” কাকে বলে?
ভূমি জরিপকালে ভূমি মালিকের মালিকানা নিয়ে যে বিবরণ প্রস্তুত করা হয় তাকে “খতিয়ান” বলে।

খতিয়ান প্রস্তত করা হয় মৌজা ভিত্তিক। আমাদের দেশে CS, RS, SA এবং সিটি জরিপ সম্পন্ন হয়েছে। এসব জরিপকালে ভূমি মালিকের তথ্য প্রস্তত করা হয়েছে তাকে “খতিয়ান” বলে। যেমন CS খতিয়ান, RS খতিয়ান…

ভূমি জরিপ: CS, RS, PS, BS কি?

৪!ভূমি বা Land কাকে বলে?
“ভূমি কাকে বলে?”- এর আইনী সংজ্ঞা রয়েছে। The State Acquisition and Tenancy Act, 1950- এর ২(১৬)- ধারা মতে, “ভূমি (land) বলতে আবাদি, অনাবাদি অথবা বছরের যেকোন সময় পানিতে ভরা থাকে এবং ভূমি হতে প্রাপ্ত সুফল, ঘরবাড়ি বা দালান কোঠা বা মাটির সঙ্গে সংযুক্ত অন্যান্য দ্রব্য অথবা স্হায়ীভাবে সংযুক্ত দ্রব্য এর অন্তর্ভুক্ত বুঝাবে।”

৫! ভূমি জরিপ/রেকর্ড কাকে বলে? ভূমি জরিপ হচ্ছে ভূমির মালিকানা সম্বলিত ইতিহাসের সরেজমিন ইতিবৃত্ত।
আইনী সংজ্ঞা হচ্ছে, The Survey Act, 1875 এবং সংশ্লিষ্ট বিধিমালা অনুযায়ী সরকারের জরিপ বিভাগ সরেজমিন জরিপ করে ভূমির মালিকানার যে বিবরণ
এবং নকশা তৈরী করে তাই রেকর্ড বা জরিপ। অর্থাৎ রেকর্ড বা জরিপ হচ্ছে মালিকানার বিরবণ এবং নকশার সমন্বয়। একটি ভূমির মালিক কে এবং তার সীমানা কতটুকু এটা ভূমি জরিপের মাধ্যমে নকশা/ম্যাপ নির্ণয় করা হয়। এই নকশা এবং ম্যাপ অনুসারে মালিকানা সম্পর্কিত তখ্য যেমন ভূমিটি কোন মৌজায় অবস্থিত, এর খতিয়ান নাম্বার, ভূমির দাগ নাম্বার, মালিক ও দখলদারের বিবরণ ইত্যাদি প্রকাশিত হয় যাকে খতিয়ান বলে। রেকর্ড বা জরিপ
প্রচলিতভাবে খতিয়ান বা স্বত্ত্বলিপি বা Record of Rights (RoR) নামেও পরিচিত। রেকর্ড বা জরিপের ভিত্তিতে ভূমি মালিকানা সম্বলিত বিবরণ খতিয়ান হিসেবে পরিচিত। যেমন CS খতিয়ান, RS খতিয়ান, ইত্যাদি।

আমাদের দেশে পরিচালিত ভূমি জরিপ বা রেকর্ড গুলো হচ্ছে;
1. CS -Cadastral Survey
2. SA- State Acquisition Survey (1956)
3. RS -Revitionel Survey
4. PS – Pakistan Survey
5. BS- Bangladesh Survey (1990)

ক) সি.এস. জরিপ/রেকর্ড (Cadastral Survey)
“সিএস” হলো Cadastral Survey (CS) এর সংক্ষিপ্ত রূপ। একে ভারত উপমহাদেশের প্রথম জরিপ বলা হয় যা ১৮৮৯ সাল হতে ১৯৪০ সালের মধ্যে পরিচালিত হয়। এই জরিপে বঙ্গীয় প্রজাতন্ত্র আইনের দশম অধ্যায়ের বিধান মতে দেশের সমস্ত জমির বিস্তারিত নকশা প্রস্তুত করার এবং প্রত্যেক মালিকের জন্য দাগ নম্বর উল্লেখপুর্বক খতিয়ান প্রস্তুত করার বিধান করা হয়। প্রথম জরিপ হলেও এই জরিপ প্রায় নির্ভূল হিসেবে গ্রহণযোগ্য। মামলার বা ভূমির জটিলতা নিরসনের ক্ষেত্রে এই জরিপকে বেস হিসেবে অনেক সময় গণ্য করা হয়।

খ) এস.এ. জরিপ (State Acquisition Survey)
১৯৫০ সালে জমিদারী অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন পাশ হওয়ার পর সরকার ১৯৫৬ সালে সমগ্র পূর্ববঙ্গ প্রদেশে জমিদারী অধিগ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয় এরং রায়েতের সাথে সরকারের সরাসরি সম্পর্ক স্থাপনের লক্ষ্যে জমিদারদের প্রদেয় ক্ষতিপুরণ নির্ধারন এবং রায়তের খাজনা নির্ধারনের জন্য এই জরিপ ছিল।
জরুরী তাগিদে জমিদারগন হইতে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এই জরিপ বা খাতিয়ান প্রণয়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছিল।

গ) আর.এস. জরিপ ( Revisional Survey)
সি. এস. জরিপ সম্পন্ন হওয়ার সুদীর্ঘ ৫০ বছর পর এই জরিপ পরিচালিত হয়। জমি, মলিক এবং দখলদার ইত্যাদি হালনাগাদ করার নিমিত্তে এ জরিপ সম্পন্ন করা হয়। পূর্বেও ভুল ত্রুটি সংশোধনক্রমে আ. এস জরিপ এতই শুদ্ধ হয় যে এখনো জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের ক্ষেত্রে আর, এস জরিপের উপর নির্ভর করা হয়। এর খতিয়ান ও ম্যাপের উপর মানুষ এখনো অবিচল আস্থা পোষন করে।

ঘ) সিটি জরিপ (City Survey)
সিটি জরিপ এর আর এক নাম ঢাকা মহানগর জরিপ। আর.এস. জরিপ এর পর বাংলাদেশ সরকার কর্তিক অনুমতি ক্রমে এ জরিপ ১৯৯৯ থেকে ২০০০ সালের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়। এ যবত কালে সর্বশেষ ও আধুনিক জরিপ এটি। এ জরিপের পরচা কম্পিউটার প্রিন্ট এ পকাশিত হয়।

৬!“পর্চা” কাকে বলে?
ভূমি জরিপকালে চূড়ান্ত খতিয়ান প্রস্তত করার পূর্বে ভূমি মালিকদের নিকট খসড়া খতিয়ানের যে অনুলিপি ভুমি মালিকদের প্রদান করা করা হ তাকে “মাঠ পর্চা” বলে। এই মাঠ পর্চা রেভিনিউ/রাজস্ব অফিসার কর্তৃক তসদিব বা সত্যায়ন হওয়ার পর যদি কারো কোন আপত্তি থাকে তাহলে তা শোনানির পর খতিয়ান চুড়ান্তভাবে প্রকাশ করা হয়। আর চুড়ান্ত খতিয়ানের অনুলিপিকে “পর্চা” বলে।

৭!“মৌজা” কাকে বলে?
যখন CS জরিপ করা হয় তখন থানা ভিত্তিক এক বা একাধিক গ্রাম, ইউনিয়ন, পাড়া, মহল্লা অালাদা করে বিভিন্ন এককে ভাগ করে ক্রমিক নাম্বার দিয়ে চিহ্তি করা হয়েছে। আর বিভক্তকৃত এই প্রত্যেকটি একককে মৌজা বলে।

৮!“তফসিল” কাকে বলে?
জমির পরিচয় বহন করে এমন বিস্তারিত বিবরণকে “তফসিল” বলে। তফসিলে, মৌজার নাম, নাম্বার, খতিয়ার নাম্বার, দাগ নাম্বার, জমির চৌহদ্দি, জমির পরিমাণ সহ ইত্যাদি তথ্য সন্নিবেশ থাকে।

৯!“দাগ” নাম্বার কাকে বলে?
যখন জরিপ ম্যাপ প্রস্তুত করা হয় তখন মৌজা নক্সায় ভূমির সীমানা চিহ্নিত বা সনাক্ত করার লক্ষ্যে প্রত্যেকটি ভূমি খন্ডকে আলাদা আলাদ নাম্বার দেয়া হয়। আর এই নাম্বারকে দাগ নাম্বার বলে। একেক দাগ নাম্বারে বিভিন্ন পরিমাণ ভূমি থাকতে পারে। মূলত, দাগ নাম্বার অনুসারে একটি মৌজার অধীনে ভূমি মালিকের সীমানা খূটিঁ বা আইল দিয়ে সরেজমিন প্রর্দশন করা হয়।

১০!“ছুটা দাগ” কাকে বলে?
ভূমি জরিপকালে প্রাথমিক অবস্থায় নকশা প্রস্তুত অথবা সংশোধনের সময় নকশার প্রতিটি ভূমি এককে যে নাম্বার দেওয়া হয় সে সময় যদি কোন নাম্বার ভুলে বাদ পড়ে তাকে ছুটা দাগ বলে। আবার প্রাথমিক পর্যায়ে যদি দুটি দাগ একত্রিত করে নকশা পুন: সংশোধন করা হয় তখন যে দাগ নাম্বার বাদ যায় তাকেও ছুটা দাগ বলে।

১১!“খানাপুরি” কাকে বলে?
জরিপের সময় মৌজা নক্সা প্রস্তুত করার পর খতিয়ান প্রস্তুতকালে খতিয়ান ফর্মের প্রত্যেকটি কলাম জরিপ কর্মচারী কর্তৃক পূরন করার প্রক্রিয়াকে খানাপুরি বলে।

১২!“আমিন” কাকে বলে?
ভূমি জরিপের মাধ্যমে নক্সা ও খতিয়ান প্রস্তত ও ভূমি জরিপ কাজে নিযুক্ত কর্মচারীকে আমিন বলে।

১৩!“কিস্তোয়ার” কাকে বলে?
ভূমি জরিপ কালে চতুর্ভুজ ও মোরব্বা প্রস্তত করার পর সিকমি লাইনে চেইন চালিয়ে সঠিকভাবে খন্ড খন্ড ভুমির বাস্তব ভৌগলিক চিত্র অঙ্কনের মাধ্যমে নকশা প্রস্তুতের পদ্ধতিকে কিস্তোয়ার বলে।

১৪!“খাজনা” ককে বলে?
সরকার বার্ষিক ভিত্তিতে যে প্রজার নিকট থেকে ভূমি ব্যবহারের জন্য যে কর আদায় করে তাকে খাজনা বলে।

১৫!“দাখিলা” কাকে বলে?
ভূমি কর/খাজনা আদায় করে যে নির্দিষ্ট ফর্মে ( ফর্ম নং১০৭৭) ভূমি কর/খাজনা আদায়ের প্রমান পত্র বা রশিদ দেওয়া হয় তাকে দাখিলা বলা হয়।

১৬!"DCR কাকে বলে?
ভূমি কর ব্যতিত আন্যান্য সরকারি পাওনা আদায় করার পর যে নির্ধারিত ফর্মে (ফর্ম নং ২২২) রশিদ দেওয়া হয় তাকে DCR বলে।

১৭!“কবুলিয়ত” কাকে বলে?
সরকার কর্তৃক কৃষককে জমি বন্দোবস্ত দেওয়ার প্রস্তাব প্রজা কর্তৃক গ্রহণ করে খাজনা প্রদানের যে অঙ্গিকার পত্র দেওয়া হয় তাকে কবুলিয়ত বলে।

১৮!“নাল জমি” কাকে বলে?
২/৩ ফসলি সমতল ভূমিকে নাল জমি বলা হয়।

১৯!“খাস জমি” কাকে বলে?
সরকারের ভূমি মন্ত্রনালয়ের আওতাধিন যে জমি সরকারের পক্ষে কালেক্টর বা ডিসি তত্ত্বাবধান করেন এমন জমিকে খাস জমি বলে।

২০!“চান্দিনা ভিটি” কাকে বলে?
হাট বাজারের স্থায়ী বা অস্থায়ী অকৃষি জমির যে অংশ প্রজার প্রতি বরাদ্ধদ দেওয়া হয় তাকে চান্দিনা ভিটি বলে।

২১!“ওয়াকফ” কাকে বলে?
ইসলামি বিধান অনুযায়ী কোন ভূমি তার মালিক কর্তৃক ধর্মীয় ও সমাজ কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠানের ব্যয় ভার বহন করার উদ্দেশ্যে কোন দান করাকে ওয়াকফ বলে।

২২!“মোতওয়াল্লী” কাকে বলে?
যিনি ওয়াকফ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা ও তত্ত্বাবধান করেন তাকে মোতওয়াল্লী বলে। ওয়াকফ প্রশাসকের অনুমতি ব্যতিত মোতওয়াল্লী ওয়াকফ সম্পত্তি হস্তান্তর করতে পারে না।

২৩!“দেবোত্তর” সম্পত্তি কাকে বলে?
হিন্দুধর্ম মতে, ধর্মীয় কাজের জন্য উৎসর্গকৃত ভূমিকে দেবোত্তর সম্পত্তি বলে।

২৪!“ফরায়েজ” কাকে বলে?
ইসলামি বিধান মোতাবেক মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি বন্টন করার নিয়ম ও প্রক্রিয়াকে ফরায়েজ বলে।

২৫!“ওয়ারিশ” কাকে বলে?
ওয়ারিশ অর্থ উত্তরাধিকারী । ধর্মীয় বিধানের অনুয়ায়ী কোন ব্যক্তি উইল না করে মৃত্যু বরন করলে তার স্ত্রী, সন্তান বা নিকট আত্মীয়দের মধ্যে যারা তার রেখে যাওয়া সম্পত্তিতে মালিক হওয়ার যোগ্যতাসম্পন্ন এমন ব্যক্তি বা ব্যক্তিগণকে ওয়ারিশ বলে।

২৬“সিকস্তি” কাকে বলে?
নদী ভাঙ্গনের ফলে যে জমি নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায় তাকে সিকস্তি বলে। সিকস্তি জমি যদি ৩০ বছরের মধ্যে স্বস্থানে পয়ন্তি হয় তাহলে সিকস্তি হওয়ার প্রাক্কালে যিনি ভূমি মালিক ছিলেন তিনি বা তাহার উত্তরাধিকারগন উক্ত জমির মালিকানা শর্ত সাপেক্ষ্যে প্রাপ্য হবেন।

২৭!“পায়স্তি” কাকে বলে?
নদী গর্ভ থেকে পলি মাটির চর পড়ে জমির সৃষ্টি হওয়াকে পয়ন্তি বলে।

২৮!“দলিল” কাকে বলে?
যে কোন লিখিত বিবরণ আইনগত সাক্ষ্য হিসাবে গ্রহণযোগ্য তাকে দলিল বলা হয়। তবে রেজিস্ট্রেশন আইনের বিধান মোতাবেক জমি ক্রেতা এবং বিক্রেতা সম্পত্তি হস্তান্তর করার জন্য যে চুক্তিপত্র সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করেন সাধারন ভাবে তাকে দলিল বলে।

Source: Collected form Facebook 

26
Bangladesh-Pakistan: Comparative Analysis Over 50 Years’ Trajectory – OpEd

Bangladesh is celebrating its golden jubilee of independence in 2021. Bangladesh and Pakistan once were the two wings of a single country. It achieved its long cherished independence from the then ruling West Pakistan in 1971. International analysts and world leaders foreseen that Bangladesh would not be able to maintain its existence in the world based on the war-torn situation.

However, from thereon Bangladesh is now considered as an economic surprise and “textbook example of development” for the world. Most surprisingly, Bangladesh is transcending towards a ‘developed state’ by 2041 whereas Pakistan is still struggling to thrive its economic, political and social dimensions. In the key socio-economic sectors, it is seemed that Bangladesh is performing far better than Pakistan

The UN has recently acknowledged Bangladesh as a developing country; stepping up from Least Developed Country (LDCs) bloc in the time when the country is celebrating 50 years’ separation from Pakistan. The success story of Bangladesh is not sketched on the note due to the political and economic failure of Pakistan rather the prudent diplomacy of Bangladesh and long term goal oriented policy including the firm determination of sustainable development have made it so. Two sectors – RMG and Remittance – play a major part in speeding up the economic wheel. While Bangladesh is a cotton-importing country to manage its apparel sector, Pakistan being a cotton-producing country has not been able to consolidate its position in the sector. In addition, another burning issue is that Pakistan is primarily driven by “defense diplomacy”, while Bangladesh places priority on “economic diplomacy”. For instance, Pakistan uses at least 4% of its GDP in military expenditures, while Bangladesh spends moderately 1.9% in its military security. In this way, Bangladesh has become capable of maintaining a steady development in both military and human security.

In the governance sector, Bangladesh is performing much better than Pakistan in achieving a viable democracy and e-governance. Though both countries have experienced hefty immersion of military in politics even when civilian governments were apparently in power, Bangladesh has become capable of being politically stable since the ninth parliamentary election in 2008.  On the other hand, Pakistan, with a civilian Prime Minister and an elected Parliament, is always striving for a true democracy in nature. Furthermore, Bangladesh has made great strides on the E-Government Development Index (EGDI). The country ranked 119th scoring 0.5189 on the EGDI in 2020 whereas Pakistan was at the second lowest in South Asia positioned at 153rd followed by Afghanistan.

Across all political, economic and social sectors, Bangladesh has developed an “exemplary development model” for the world. Compared with Pakistan, Bangladesh upholds it to a position whereas Pakistan is struggling to keep up its socio-economic development. The ‘bottomless basket’ case is now a role model for the world from where Pakistan has much to learn as well.

*Shaikh Abdur Rahman is an independent researcher. He graduated in International Relations from Rajshahi University. He is interested in Human Security issues, South Asian Politics and Economic Diplomacy of Bangladesh.

Source: https://www.eurasiareview.com/08062021-bangladesh-pakistan-comparative-analysis-over-50-years-trajectory-oped/?utm_source=feedburner&utm_medium=email&utm_campaign=Feed%3A+eurasiareview%2FVsnE+%28Eurasia+Review%29

27
ALLAH  is the only explanation of all physical phenomena in this universe..

বাসায় ৪টা সিসি ক্যামেরা লাগানো আছে। এই লকডাউনে বাসায় বসে সিসিটিভিতে রাস্তায় মানুষের আনাগোনা দেখি। কিছুদিন ধরে আমার চিন্তার জগতে ঝড় বয়ে যাচ্ছে। কারণ আমার পবিত্র ধর্মগ্রন্থে মহাপবিত্র স্রষ্টা বারংবার বলেছেন...

"নিশ্চয়ই চিন্তাশীলদের জন্য অনেক নিদর্শন রয়েছে"

এই বাক্য অনেকবার পড়েছি, কিন্তু কখনো এতো গভীরভাবে ভেবে দেখিনি। গত ক'দিন ধরে কিছু বিষয় নিয়ে ভাবছি।

যেমন :-

১. যে সিসিটিভিতে আমি রাস্তার মানুষের কাজকর্ম পর্যবেক্ষণ করছি, তা এই পৃথিবীর বিভিন্ন উপাদান দিয়েই তৈরী। তাহলে কি এমন কোন মহাশক্তিধর সিসিটিভি আছে, যা সমগ্র বিশ্ব-ব্রহ্মান্ড পর্যবেক্ষণ করছে?

      "নিশ্চয়ই তিনি সব দেখেন"

২. আমি আমার এক মৃত বন্ধুর বিয়ের ডিভিডি খুব আবেগ নিয়ে দেখছিলাম। সে নাই, কিন্তু তার অতীত কর্মকাণ্ড দেখতে পাচ্ছি। সেই আবেগ পরক্ষণেই ভয়ে পরিণত হল, যখন ভাবলাম, এমন কোন মহাশক্তিশালী ডিভিডি কি থাকা সম্ভব যা সমগ্র সৃষ্টির কার্যাবলী রেকর্ড করছে। আর সেটা পরে প্লে করা হবে?

             "সেদিন সবকিছু প্রকাশ হয়ে পড়বে
            তোমার পালনকর্তার আদেশ অনুযায়ী "

৩. মা যখন বাচ্চা প্রসব করে, তখন সেই বাচ্চার পুষ্টিগুণ অনুযায়ী মায়ের বুকে দুধই কেন আসে? কোকাকোলা,স্প্রাইট, বিয়ার কেন আসেনা? কার পরিকল্পনা? মাথা কাজ করেনা রে ভাই।
 
     "মানুষ সৃষ্টিগতভাবেই দুর্বল"

৪. পৃথিবীতে আমাকে জিজ্ঞেস করে পাঠানো হয়নি, আবার আমাকে বিদায়ও নিতে হবে আমার ইচ্ছা ছাড়াই। কেন? কার ইচ্ছামত পৃথিবীতে আসলাম আর বিদায় নিব?
 
   " বলুন,আমি আশ্রয় নিচ্ছি মানুষের পালনকর্তার কাছে, মানুষের অধিপতির কাছে, মানুষের প্রকৃত মাবুদের কাছে"

৫. বৃষ্টির পানি টাক মাথায় পড়লে চুল গজায়না, কিন্তু মৃত জমিতে পড়লে ঠিকই হরেকরকম ফসল জন্মে। কি আছে এতে? কার নির্দেশে এমন হয়?

"আর যিনি আসমান থেকে পরিমিতভাবে পানি বর্ষণ করেন। অতঃপর তা দ্বারা আমি মৃত জনপদকে সঞ্জীবিত করি। এভাবেই তোমাদেরকে বের করা হবে"

৬. উট তার উদরে পানি ধরে রাখতে পারে, যা মরুভূমিতে প্রয়োজন মতো কাজে লাগায়। মানুষ কেন পারেনা? উটকে এমনভাবে প্রোগ্রাম করলো কে? মাথা কাজ করেনা।

     "তারা উটের দিকে কি তাকিয়ে দেখেনা,
     যে কিভাবে তাকে সৃষ্টি করা হয়েছে"

৭. সমুদ্রের অনেক গভীরে যেখানে সূর্যালোক প্রবেশ করতে পারেনা, সেখানে কিছু মাছ আছে যাদের শরীরে বিদ্যুৎ তথা আলো তৈরী হয়। এত গভীরে পানির চাপেও তারা মারা যায়না, অথচ এই চাপে লোহাও বেকে যায়। কে এদের এভাবে সৃষ্টি করলো?

          "তিনি যা ইচ্ছা তাই সৃষ্টি করেন"

৮. মানুষের এক জিহবা এতো স্বাদ কিভাবে বুঝে? কে প্রোগ্রাম করলো? কেম্নে সম্ভব??

৯. খাদ্য হজম প্রক্রিয়া এতো নিখুঁত কিভাবে?যেমন, শর্করা হয় মুখবিবরে, এর জন্য আলাদা এনজাইম, আবার আমিষ হয় পাকস্থলীতে, তার জন্য আলাদা এনজাইম? আবার ফিল্টার হিসেবে কিডনি, অপাচ্য নির্গমনের পথ..কে সেই মহা বিজ্ঞানময় সত্ত্বা!! ইশারা কি বুঝেন??

১০. মানুষের শ্রবণ ও দর্শন মেকানিজম যে কি জটিল তা ভাবা যায়না। কে এতো নিখুঁতভাবে ডিজাইন করলো??

১১. বিজ্ঞান শুধু দুটো প্রশ্ন নিয়ে কাজ করে। কি এবং কিভাবে? কেন'র কোন উত্তর বিজ্ঞানের কাছে নেই। যেমন, কি হল? ভূমিকম্প..কিভাবে হল? টেক্টোনিক প্লেটের সঞ্চালনের কারণে। টেক্টোনিক প্লেট কেন সরে গেল? উত্তর নাই।

এভাবে আরো অনেক বিষয় আছে চিন্তা করার, যা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়-

ALLAH  is the only explanation of all physical phenomena in this universe..

        "আমিই তোমাদের সৃষ্টি করেছি.
        তারপরও তোমরা কেন বিশ্বাস করছ না? "

#সংগৃহীত

28
Unsolicited Suggestions For **S E N I O R S above the age of 60....

Unsolicited Suggestions             For
**S E N I O R S above the age of 60....
           
▪When you get old, never teach anyone anything, unless requested, even if you are sure you are right.

▪Do not try to help unless asked for. Just be ready & available for it if possible.

▪️Do not give unsolicited opinion all the time.

▪️Do not expect everyone to follow your opinion, even though you feel your opinion was the best...

▪Don't impose yourself on anyone on any subject.

▪Don't try to protect your loved ones from all the misfortunes of the World. Just love them & pray for them.

▪Don't complain about your health, your neighbours, your retirement, your woes all the time.

▪Don't expect gratitude from children.

▪There are no ungrateful children, there are only stupid parents, who expect gratitude from their children.

▪Don't waste your last money on anti - age treatments. It's useless.

▪Better spend it on a trip. It's always worth it.

▪Take care of your spouse, even if he/she becomes a wrinkled, helpless and moody old person. Don't forget he/she was once young, good looking and cheerful, may be he/she is the only one who really needs you right now.

▪Understand new technologies, obsessively follow the News, constantly study something new, a new skill, a new dish, a new indoor game, do not fall behind in time.

▪Don't blame yourself for whatever happened to your life or to your children's lives, you did everything you could.

▪Preserve your dignity & integrity in any situation, till the end.

▪Do your best, my senior Peers. This is very important. Remember, if you're still alive, someone needs you. Do your best & leave the rest to The Almighty.

▪I guess some friends are already following these tips.

All the Best.

(Collected)


29
ঘাড়ের ব্যথা নামিয়ে ফেলুন

অনেকেই জীবনে কোনো না কোনো সময় ঘাড়ের ব্যথায় ভোগেন। মূলত ভুল দেহভঙ্গিতে বসা বা শোয়ার কারণে ঘাড়ে ব্যথা হয়ে থাকে। করোনাকালে কম্পিউটার, মুঠোফোনসহ ডিজিটাল অনুষঙ্গের ব্যবহার বেড়েছে। সারা দিন এ ধরনের কাজ করার সময় ভুল দেহভঙ্গির কারণে বাড়ছে ঘাড়ব্যথার সমস্যাও।

এক জায়গায় বসে কত কাজই না করি আমরা। কেউ হয়তো ঘাড় ঝুঁকিয়ে দীর্ঘক্ষণ বই পড়ছেন, কেউ ঘাড় বাঁকিয়ে সেলাই করছেন, কেউ একটানা করছেন রান্নাঘরে কোটাবাছার কাজ। কারও হয়তো বাসা থেকে দূরের কর্মস্থলে রোজকার যাওয়া-আসায় যানবাহনের ঝাঁকি লাগছে। এগুলোর যেকোনোটাতেই হতে পারে ঘাড়ব্যথার শুরু।

বয়সজনিত বিষয় কিংবা অন্য কোনো কারণে হাড় ক্ষয় হলেও ঘাড়ে ব্যথা হতে পারে, বাতব্যথাও একটা কারণ বটে। যক্ষ্মার জীবাণুর সংক্রমণ এবং অন্যান্য প্রদাহের কারণেও ঘাড়ে ব্যথা হয় কারও কারও। মাথাব্যথা এবং কাঁধ ব্যথাও কখনো ছড়িয়ে পড়তে পারে ঘাড় পর্যন্ত।

তবে যে কারণেই হোক, ঘাড়ব্যথা ভোগাতে পারে অনেক দিন।

হাঁটার সময় সোজা থাকতে হবে
হাঁটার সময় সোজা থাকতে হবেপ্র স্বাস্থ্য
লক্ষণ দেখে যায় চেনা
ঘাড়ে ব্যথা অনুভব হতে পারে অল্প অল্প, কিংবা হতে পারে তীব্র। পেশি খিঁচে ধরে থাকার কারণে ঘাড় নাড়াতে অসুবিধা হতে পারে। ঘাড়ব্যথার সঙ্গে হাত ঝিনঝিন করা কিংবা হাতের পেশির দুর্বলতা হতে পারে যদি স্নায়ুর সমস্যা থাকে। আবার ঘাড়ব্যথা ছাড়াও কেবল হাত ঝিনঝিন করা কিংবা হাতের পেশির দুর্বলতার রোগীদের মূল সমস্যা বা রোগটি থাকতে পারে ঘাড়েই। যক্ষ্মার জীবাণুর সংক্রমণ হলে জ্বর কিংবা ওজন কমে যাওয়ার সমস্যাও থাকতে পারে। লক্ষণ বিবেচনা করে ও দরকারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর কারণটি সঠিকভাবে চিহ্নিত করতে পারলে চিকিৎসায় সুফল মিলবে।

ঘাড়ব্যথা এড়াতে
দাঁড়াতে হবে ঋজু ভঙ্গিতে। হাঁটার সময়ও সোজা থাকুন। কুঁজো হয়ে বা ঝুঁকে থাকবেন না।

লো হাইট বা নিচু আসবাব কিন্তু ঘাড়ের জন্য ভালো নয়। চেয়ারের পেছনটায় যেন বিশ্রাম পায় আপনার ঘাড়। রিভলভিং বা ঘূর্ণনশীল চেয়ার ব্যবহার না করাই ভালো। চেয়ারে বসে কাজ করার সময় কোমর আর চেয়ারের মাঝে যেন ফাঁক না থাকে। চেয়ার ও টেবিলের উচ্চতা হোক আপনার উপযোগী।

বসতে হবে নিয়ম মেনে, সোজা হয়ে। বসে যে কাজই করা হোক না কেন, ঘাড় ঝুঁকিয়ে বা বাঁকিয়ে রাখবেন না।

সুবিধাজনক উচ্চতায় রাখুন কাজের সরঞ্জাম (যেমন কম্পিউটার)। চোখের সমান উচ্চতায় রাখুন কম্পিউটার ও টেলিভিশনের মনিটর। ঘাড় গুঁজে কম্পিউটারে কাজ করা কিংবা ঘাড় উঁচু করে বা শুয়ে শুয়ে কাত হয়ে টেলিভিশন দেখা—দুটিই ঘাড়ের জন্য ক্ষতিকর।

শুয়ে কিংবা বাঁকা হয়ে বসে, বিছানায় বা মেঝেতে রেখে ল্যাপটপ কম্পিউটারে কাজ করা ঠিক নয়। ল্যাপটপ কম্পিউটারও টেবিলে রেখেই কাজ করার অভ্যাস করুন। কনুই দুটি থাক শরীরের কাছাকাছি, আরামদায়ক ভঙ্গিতে। কম্পিউটার রাখুন শরীর থেকে এক হাত দূরত্বের মাঝে। চেয়ারের উল্টো পাশেই। অর্থাৎ, টেবিলের এক কোণে কম্পিউটার, আর বারবার ঘাড় ফিরিয়ে তা দেখতে হচ্ছে—এমন যেন না হয়। কবজিও যাতে খুব একটা ভাঁজ করতে না হয়, তা নিশ্চিত করুন।

মুঠোফোন কিংবা হাতে নিয়ে দেখতে হয় এমন যন্ত্রে কাজ করার সময় ঘাড় নিচু করবেন না। বরং যন্ত্রটিকে রেখে নিন ঘাড়ের জন্য সুবিধাজনক কোনো জায়গায়। মুঠোফোনের জন্য স্ট্যান্ডও ব্যবহার করতে পারেন। অথবা ব্যবহার করুন ইয়ার প্লাগ, যাতে ফোন দীর্ঘ সময় কানে লাগিয়ে রাখতে না হয়।

বই পড়ার বেলায়ও তা–ই। পড়াশোনা তো করবেনই, কিন্তু তার জন্য ঘাড় নুইয়ে বসা যাবে না। ভারী ব্যাগ তুলে দেওয়া যাবে না শিক্ষার্থীর কাঁধে।

মেঝেতে নুয়ে পড়ে কোনো কাজ করার চেয়ে তা দাঁড়িয়ে করার ব্যবস্থা করতে চেষ্টা করুন। যেমন বঁটিতে সবজি না কেটে দাঁড়িয়ে বা চেয়ারে বসে টেবিলে চপিং বোর্ড রেখে তার ওপর সবজি কাটুন। ঘর ঝাড়ু দেওয়া বা ঘর মোছার মতো কাজ করুন দাঁড়িয়ে।

একই ভঙ্গিতে একনাগাড়ে অনেকক্ষণ বসে কাজ করা ঠিক নয়। মাঝেমধ্যে বিরতি দিন। এই বিরতিতে তো অবশ্যই ঘাড়ের পেশির ব্যায়াম করবেন, আবার সারা দিনের কোনো নির্দিষ্ট সময়েও ঘাড়ের ব্যায়াম করতে পারেন। ঘাড়ের ব্যায়ামের অর্থ হলো তা এমন ব্যায়াম, যাতে ঘাড়ের পেশিগুলো বিভিন্ন দিকে টান টানভাবে নাড়ানো (স্ট্রেচিং) হয়। নিয়মিতভাবে ঘাড়ের সব পেশির সঞ্চালন করাটাই এসব ব্যায়ামের মুখ্য বিষয়।

গাড়ি চালানোর সময় গাড়ির আসনের সঙ্গে ১৫ ডিগ্রি কোণ করে হেলে থাকুন। স্টিয়ারিংয়ের ওপর ঝুঁকে পড়বেন না।

ভারী কিছু তুলতে হলে শরীরের কাছ থেকে তুলুন, দূর থেকে নয়। অর্থাৎ, ভারী জিনিস তোলার সময় তা যেন আপনার শরীর থেকে দূরে না থাকে। বরং তোলার সময় তা থাকে শরীরের কাছাকাছি। ভারী জিনিস বহন করার সময় মেরুদণ্ড সোজা রাখুন।

যেকোনো ভঙ্গিতে শরীর ভাঁজ করতে হলে কখনোই খুব নুয়ে পড়বেন না।

শোয়ার জন্য নেবেন মাঝারি আকারের একটি বালিশ (উঁচুও নয়, নিচুও নয়)। বালিশে চাপ পড়লে যেন তা বেশি দেবে না যায়। তবে খুব শক্ত বালিশও ব্যবহার করা উচিত নয়। ঘাড়ের স্বাভাবিক বক্রতা যেন বজায় থাকে, এমন ভঙ্গিতে শোবেন। বালিশের একপাশে শুয়ে থাকার ফলে সেই দিক খানিকটা দেবে যেতে পারে, তখন অপর দিক ব্যবহার করা যায়। তবে দীর্ঘদিনের ব্যবহারে বালিশের দুদিকই দেবে গেলে তা বদলে ফেলতে হবে।

ঘাড়ে ব্যথা হলে
ব্যথা তীব্র হলে ব্যথানাশক সেবন করা যায়, তবে এসব ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। ব্যথা কমানোর জন্য গরম সেঁক কার্যকর। হট ওয়াটার ব্যাগ বা হিটিং প্যাড ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ বেলা, প্রতিবেলা ৩০ মিনিট করে। তবে খুব বেশি উত্তাপে ত্বকের উপরিভাগ যেন পুড়ে না যায়, সেদিকে খেয়াল রাখুন। যাতায়াতের সময় ঝাঁকুনি এড়াতে ঘাড়ে কলার পরে নিন। ঘাড়ের আকার অনুযায়ী কলার বেছে নিন।

এ ছাড়া একটি কার্যকর চিকিৎসা হলো ফিজিওথেরাপি। ঘাড়ে ও কাঁধ হাতে ব্যথার জন্য আছে নানা ধরনের ব্যায়াম। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ব্যায়াম শিখে নিয়ে ব্যায়াম করুন। এর বাইরে শর্টওয়েভ ডায়াথার্মি, মাইক্রোওয়েভ ডায়াথার্মির মতো ফিজিওথেরাপি কাজে দেবে।

ক্ষেত্রবিশেষে অনেক সময় কিছু ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন পড়ে।

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দৈনন্দিন কাজকর্মের ইতিহাস আর এক্স-রে ও সাধারণ কিছু রক্ত পরীক্ষা থেকেই মূল কারণ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। অল্প কিছু ক্ষেত্রে এমআরআই এবং অন্যান্য পরীক্ষার প্রয়োজন পড়ে। তাই চিকিৎসকের কাছে যেতে দ্বিধা করবেন না। রোগ শনাক্ত হতে যত দেরি হবে তত জটিল হবে সমস্যা।

লেখা:
অধ্যাপক সোহেলী রহমান,
ফিজিক্যাল মেডিসিন ও রিহ্যাবিলিটেশন বিশেষজ্ঞ

© প্রথম আলো

30
Animals and Pets / THE ULTIMATE GUIDE TO Dog Training
« on: June 17, 2021, 10:06:45 AM »
THE ULTIMATE GUIDE TO Dog Training

Introduction To Dog Training

Woof, woof, woof-woof, woof! This translates to, “Congratulations, you made it to The Ultimate Guide To Dog Training!” in dog language, of course.

Here you will learn an abundance of tips, tricks, advice; a dog training masterclass that will turn your disobedient and domesticated form of a wolf (aka dog) into an animal with better manners than the Royal Family.

Although I’m not sure you will be able to get your newly trained dog to sit on a throne and wear a crown, but if you do, then please, for the love of mankind, give that dog a well-deserved treat.

So, without further ado, let’s get into the ultimate guide to dog training! Make sure you have a pen and paper ready as you’ll be taking down some vital notes that will improve your dog’s obedience and overall manners in no time.

The Triple Threat: Timing, Consistency, and Motivation
Here we have a great structure known as ‘The Triple Threat,’ consisting of timing, consistency, and motivation. All are just as important as the other, but when combined as one, it becomes a recipe for success!


Timing
So what exactly is meant by the term ‘timing,’ and how should it be considered when training your dog? Well, it’s known that dogs have a short span of 1.3-seconds to instinctively act on a decision, which is critical to remember in dog training.

Any period after the 1.3-second window may cause some confusion for your dog; the more time they have to process something means more time for their mind to run wild with what is going on.

With that said, you have to be quick and extremely observant around your dog, so you can pick up on mistakes and praise-worthy moments while being able to react within this vital 1.3-second window.

This way, it doesn’t give them too much time to think. They feel as though they must respond to whatever has happened in this vital timespan, whether it’s a “good boy moment” or a “bad dog moment.”


Consistency
Now, this one requires discipline from both the dog and the owner, and what I mean is that it’s easy to try new methods in your training phase. You go to the park and hear different tips from other dog-walkers, which causes you to try them all, right? Wrong.

This can confuse your dog as the pattern of commands is ever-changing. By doing this, your dog will never be able to adjust effectively and learn over time, as they simply do not know how to react to an array of different things all at once.

As the saying goes, “quality over quantity.” It’s a huge factor here as it’s about sheer consistency rather than a barrage of mind-juggling commands and actions.

If you don’t want your dog to jump up on you or your furniture, then you have to be consistent and not let them do it AT ALL. That is because if you allow your dog to do it every so often, they will perceive it as being okay to do so.

However, when they do it and you get angry, it causes them grave confusion. You may see them being disobedient or ill-mannered when it relies heavily on consistent reinforcement from the owner.

For example, you’ve had a great day at work and been given praise by your boss (yes, humans enjoy approval as much as dogs), so you go home and let your dog on the furniture for a change as you’re in a great mood.

The next day you go to work and find out they’ve given the vacant promotion to Gary, in the next cubicle, even after yesterday’s praise from the boss. You go home, sit down, and hey-presto your dog jumps on the furniture, but you get angry with it.

Remember, dogs do not speak our language. They act entirely on emotion and commands when it’s been reinforced over time, so without consistency, your dog has a greater chance of staying in a disobedient state.


Motivation
To put it simply, motivation is a universal thing across the animal kingdom and the human one. We see something that we like or have a goal in mind, and it gives us the oomph that we need to achieve this outlined objective. This is no different for our beloved dogs.

When our dogs are doing well, we are supposed to praise and reward them for their efforts. It helps reinforce that those actions are correct and that they should continue to strive for this behavior on a more consistent basis to reap the benefits.

Not only should you repay their great behavior with a treat, but also when they’re able to correct a mistake. This will also highlight that the initial reaction they did was bad, and the correction was the right thing to do.

However, you have to find out what is most rewarding to your dog, as a simple ruffle of the head isn’t exactly a long-lasting perk. The reward has to be good enough in encouraging the dog to achieve it more frequently.

Not only this, but the communication element between you and your dog must be clear, concise, and above all else meaningful.

Another thing, if your dog doesn’t enjoy being cuddled, then don’t reward them with one when they do something good or make a correction. It has to be something they thoroughly enjoy, giving them the motivation to work towards it more often through their good behavior.

 

Four Stages of Learning
When you embark on your dog training journey, you will meet various challenges, and success won’t come overnight, so you must be committed to the cause if you want the best results possible for your pup.

It takes time, patience, and consistency to achieve obedience with your dog. As a rule of thumb, dogs usually need approximately three to six months of constant reinforcement and repetition before they start to form tendencies of well-mannered behavior for long-term success.

Here you will get to grips with the four stages of learning so you can gauge the overall process with a more in-depth understanding. This will help you when integrating daily training methods.

Acquisition – Showing
At this stage, the trainer should always have an idea of how they want the final result to look like when training for a specific objective. To help achieve this, we start with the showing phase. In short, it is a method where you will aid the dog in making the right decisions via visual aids and/or prompts in an environment that has no distractions.

To help show your dog what you want them to do, you need to ensure they are attentive to every move you make, so using aids such as walking leashes, dog treats, a favorite toy, or even your hands, is necessary for gaining your dog’s full attention.

For example, if you want your dog to lie down, you must give the “lie down” command once, then lead them into the wanted position. Once done successfully, they can be rewarded with a treat, so they’re aware what they did was good work.

It’s essential to note you shouldn’t expect your dog to understand what you want them to do right from the get-go, especially if they’ve never been shown this exercise before. Everyone has to learn somewhere with different forms of teaching, and dogs are no different. 

When conducting the showing phase, you must use treats and rewards generously, so the dog is willing to listen and learn to get their well-earned prizes.

Also, this phase requires a large degree of patience and repetition, so when your dog begins to grasp what you want them to do without your helping hand, you can be assured that they’re moving in the right direction.

Automatic – Fluency
In the second stage, the dog gets to showcase his learning and what you have taught him over time. It should be a routine schedule packed with positive reinforcement for correct responses and more training if your dog struggles with the tasks at hand.

You must always be mindful of good timing, too; giving feedback quickly and early will enhance the dog’s fluency. It will increase the speed of their response to trained commands a lot more efficiently.

Once you have a valid success rate of around 80%, your dog should promptly move to the next stage, as they are responding well enough to proceed further.

However, suppose your dog still appears to experience bouts of confusion, scaredness, or is making mistakes more frequently due to not being receptive to trained commands. In that case, you must return to the teaching phase and ensure that they understand what is required before moving forward.

Another thing to mention is that when they respond well, you must start limiting body language prompts, for example, using your hand in a downward motion to get them to lie down.

In addition to this, you should also start using treats as rewards only, instead of using them for both rewards and baiting your dog into a command. This way, the dog will soon learn to reap the rewards of their good behavior.

Application – Generalization to the environment
It is where the learning gets interesting and slightly more complex but hey, who said success was easy, right?

The application stage is where you will begin to apply what you have learned under harder circumstances, such as performing exercises in environments that are riddled with potential distractions for your dog.

The idea is to generalize the environment for your dog, so performing acts, no matter where they are, should be deemed as a normal thing for them. With this in mind, they should only execute these exercises, not out of fun or for the prospect of a reward, but to understand there is a responsibility for them to act in this well-behaved manner at all times.

To do this, you must slowly implement distractions when conducting your chosen exercises. An example may be getting your dog to sit when they see somebody kicking a ball in the local field. Not only will this increase overall obedience, but it will also save you some money as you won’t need to replace 8-year old Timmy’s soccer ball your dog seems to burst every other week. It’s a win-win.

It’s vital to stay strict at this point and only give rewards and praise when you feel moments of the application stage are being met accordingly. Of course, stay on top of mild mistakes so the dog can understand what they have done and make a correction if needed.

With that said, if your dog is still finding it hard to grasp this stage, you may be moving ahead of time. Take it easy and go through the stages at a steady pace until progress is evident.

Always – Maintenance
You made it to the final stage; congrats! It was tough, but you got there, and we’re glad you made it. The final stage is probably the easiest. It’s like being 50m ahead of your opponent in the final moments of a 200m sprint. However, one trip can set you back 25m, so be wary and not get too complacent.

At this stage, your dog will perform their exercises consistently without the need for much, or any, type of prompt or aid as they are aware of what is expected of them despite their environment or circumstances.

But it doesn’t stop there. You also have a responsibility to maintain this behavior by dishing out reinforcement when specific behaviors are present. Keep on track, and remember it isn’t a sprint but a lifelong race.


Part 1: Fundamental Tips For Humans
In Part 1: Fundamental Tips for Humans, we will discuss some important topics that should help you to be more receptive as a trainer. We have included this element as being a trainer can be a difficult, frustrating job. Pay attention to these great tips and jot some ideas down when you feel like you read something that stands out to you.

Tips For Training

Treats
You like them, your dog likes them, everybody likes treats! However, how much should we give to our dog when it comes to treats? Well, depending on size and breed, it could differ, but as a general point of reference, the key is to give them treats that are small enough just so they get a little taste, yet it’s not exactly a small meal.

Also, if you find yourself handing out many treats in one day, this could be a sign that your dog is receptive to the rewarding system you have in place. He might be trying to impress you, or he could be a mastermind and do these things just to ensure he has a treat at all times; either way, it’s a win-win.

Although this is a good method to teach behavior, you should also refrain from giving treats away for nothing. At this point, your dog may start to expect it more often and could become restless if he/she doesn’t get their way. Do not, and I repeat, do not give treats away for free!

Think
As a trainer, you are always thinking, and if you’re not, well, you definitely should be. The idea is to think about how you want your dog to act instead of how you want them not to. If they do something wrong, then tell them it’s bad, and vice versa, if they do something good, reward them for it.

It’s essential to know that all good things from your dog are a byproduct of your teaching and competencies. By thinking and anticipating your dog’s acts, it can significantly improve the likelihood of the desired behavior you want them to act like. Be assertive, consistent, and above all else, a loving companion.

Long Is Wrong and Short Is Sweet
Now think about this one, imagine you being run into the ground for hours upon hours a day until you’re exhausted and bored? Well, it’s no different for your furry friend – except their attention span is about one-tenth of yours.

This means when training, you have to be concise and ensure progress is being made within these smaller stints. The general idea is to train in 5-minutes intervals, at least three times a day, to ensure your dog is learning how to be disciplined and improve.

With this said, even if you happen to complete 5 mins of training three times a day, you must be aware that you are constantly training your dog whenever you are responding to their behavior.

They jump on the furniture, and you say, “DOWN!”—that’s training. They nibble on your smelly toes, and you say, “NO!”—that’s also training. They sit on your toilet and read the Daily Dog, and you say, “Please use the garden outside.”—yep, that’s training too.

Groom To Avoid Doom
This is an underrated one for me; many dog owners seem to forget how important grooming their dog is. Now, it’s essential to ensure your dog is well looked after by providing them with the necessary clean and care they deserve. Just because you may be scruffy doesn’t mean your dog has to suffer too.

You should clean their teeth, at the very minimum, several times a week and ears once every seven days. Please bear in mind that different dogs have different sensibilities and always use pet-related items that a vet has preferably certified.

Giving them a thorough bath wouldn’t go amiss either, ideally once every three months would be fine, but no less than this. Of course, this also depends on what breed of dog you have, so consult with a vet before making these kinds of decisions. If you have a dog that molts, I would advise giving them a good brush every day or so and maybe a trip to the doggy barbers every few months, so their coat gets the treatment it deserves.


Strategies To Fix a Naughty Pup Prevent The Event
One thing to consider as humans is avoiding problems for your dog before they even happen. Now, the likelihood of preventing every problem before it comes to fruition is very, very low. Unless, of course, your name is Cesar Millan, or better yet, you have a mystic ball. Both, again, are very unlikely.

However, we can put things in place to limit the number of problems before they arise by implementing careful strategies your dog will recognize over time if done correctly. Many of these problems stem from generic social issues and common living environments such as: trimming nails, walking by busy streets, or even stumbling across the mailman now and then.

To combat such examples, you need to teach your pup that these situations aren’t scary and are a part of their everyday dog life. Implementing treats, gifts, and love at certain times will help them get used to such events in no time!

But let’s not forget one crucial ingredient—communication. For me, communication is the most essential skill in all walks of life. It’s what helps humans and animals collectively understand one another.

By using communication to teach your dog that calmness is a behavior well rewarded, you will be able to prevent problems before they present themselves.

Keeping your dog’s surroundings and environment convenient for them is an important aspect too. They need to be challenged accordingly while also being able to socialize with other dogs. This shows them quickly what normal behavior should be like under these circumstances, especially when they’re being corrected.

Em’bark’ing On A Solution
If you ask what are the most common problems with dog owners and their companions, the chances are they will always be a list of likewise problems such as; pulling, barking, nipping, not using the toilet in the right places. This is entirely normal and should be expected early on as these issues are embedded in our dog’s DNA.

Dog’s aren’t born trained, but you can find out how smart they are if you teach them correctly. Over time, they have to be taught how to act under specific events to help develop their obedience. With this said, here are some vital steps to consider when looking for solutions to bad behavior and why your dog may be acting the way they are:

Firstly, let’s look at their environment and health. Are they getting the exercise they need? Do they have a good sleep pattern? Is their diet sufficient? Are there any medical issues?

We must consider all aspects of our dog’s life. If any of these examples aren’t ticked, we must consider them to be a cause of their inappropriate behavior until proven otherwise.

Avoid incoming misbehavior until you’ve had time to teach them proper obedience. Try and anticipate oncoming misbehavior and attempt to avoid things that encourage them to act out. It may seem complicated, but when you pay close attention, you will start to realize certain things may provoke your pup.

Ensure you aren’t accidentally handing out rewards left, right, and center, as this could indirectly influence your dog in thinking certain things are rewards when they aren’t. If they are acting out, simply place them into a 5-minute break where they have time to compose themselves again.

Try and give rewards in place of misbehaving tendencies. For example, attempt to teach your dog to sit when they’re barking for attention. This is when you should be asking your dog to perform the action you want to promote good habits instead of bad ones..
To cement this method into your dog’s daily obedience, you must show that the reward they receive is more worthwhile than the misbehaving act they are putting forth.

Routinely practice the behaving substitute that has taken the place of the misbehaving actions. Ensure you provide rewards for correctness, but ignore errors and start with challenges easy to grasp before implementing ones more complex over time.
If fear is why your dog is acting out, you must couple the things they’re scared of with something they love and get excited about. For example, your dog gets scared by the milkman, quickly teach them that his visit is rewarded with a treat or toy. By doing this, it will eventually condition them to look forward to seeing the milkman as they know they will be treated for it.
Be loving, compromising, and patient.

Turning Your Dog Into a Social Butterfly
Socializing your dog is vital as it can be a prime factor in their behavioral development. Here are some great tips to consider when looking to turn your dog into the most popular canine in the park.


Start Early
This doesn’t mean only young pups will benefit from socializing; on the contrary, all dogs will see big improvements from it, but it’s easier to help implement with a younger dog than an older one. This is because younger dogs, or animals in general, for that matter, are more receptive to absorbing new information and events.

Once they develop and age, they quickly become more alert around things that appear to be unfamiliar. The pinnacle age to integrate socialization is typically between three and 16 weeks old, so bear this in mind when starting early.

Familiarisation
The general objective is to create a positive attitude towards as many new encounters and experiences as possible. Encourage your dog to listen and be around things that are usually loud and initially off-putting for them, such as vacuums, cars, planes, lawnmowers, etc.

Allow your dog to try out different textures on surfaces like grass, sidewalks, sand, and mud, so it becomes familiar instead of something new and scary. The same goes with smells, too; the more, the better!

Of course, you shouldn’t take your pup for walks until they’ve had their vaccinations. Still, you can implement alternatives like putting your puppy in a stroller, so it can experience its surroundings before taking its first steps outside. Yes, I know this may be quite Paris Hilton-esque, but it’s a method that works and works well.


Meeting New People
For all dog owners out there, this one is always a cautious topic as we never truly know how our dogs will react when they meet new people. Whether it’s a rage-fuelled bark or a rapid wag of the tail, sometimes we just have to test the waters first and foremost.

A way to ease them into meeting new faces and bigger groups of people is, like always, to start slow and gradually allow them to see more and different people, the better they respond. It’s always a great starting point to trial this with family, as they will be the ones to see your dog the most. It’s only right to make them familiar with those faces.

Once they’ve nailed that, you can take it to the next level by going to the park and letting individuals, or friends they’ve never met, give them the love they deserve.

To make this a success, I would also advise introducing your dog to people who have different appearances too. They may have never seen somebody wearing a hat, and the second they will see one, it could send them into an uncomfortable state.

Rewards Are a Dog’s Best Friend
Remember, the world is a huge and scary place for us humans, so imagine how your dog must feel. With this in mind, you should always, and I mean ALWAYS, remember to give them lots of love, treats, and praise as they start to discover new experiences.

By doing this, you are associating new experiences as being positive, so, by nature, your dog should recognize this pattern and continue to do so to get some well-deserved rewards.


Puppy School
Before sending your pup on their way to puppy school, not only should you hold back those tears, but you need to ensure they’ve started their vaccinations, as they will be mixing with lots of other dogs from different households.

Puppy school is a great way to help your dog learn the basic training methods via specific commands. The schools are designed to assist your dog with learning commands and socialize with more dogs and more people. It’s a double-whammy!

The World Is Your Oyster
As soon as your pup has a sense of familiarity around its usual surroundings and groups of people, it’s time to make “the leap of faith” and start introducing it to newer, more adventurous environments that have larger groups of people.

As soon as they’ve completed their vaccination stages, you can finally start making some new and hopefully long-lasting puppy friends at the local doggy park!


Part 2: Fundamental Tips For Teaching Your Dog
Right, we’ve finally covered some fundamental tips for us humans. Now, it’s time to take some dog-friendly notes down for teaching our much-beloved canines!

Name Recognition
Name recognition, initially, isn’t as bad as you may think. It’s probably the first thing your dog will learn themselves.

After hours, days, or even weeks of deciding what insanely cool, yet different to everyone else’s, dog name to give them, you will repeat it relentlessly to make sure they become familiar almost immediately.

Basics
As always, to begin any learning process, dogs must be in an environment where it’s peaceful, with no distractions that can cause them to veer off the task at hand. Once they have more of a foothold, or paw-hold, on their name, you can start to implement noisier environments, so they become more accustomed.

The Harder You Practice, The Luckier You Get
There was once an old saying, from a famous golfer by the name of Gary Player, which was “The harder I practice, the luckier I get.” It always resonated with me, not only because I’m a huge golf fan but also because it’s a very wise saying when you further dissect it. It tells us that the more we practice something, the better we get at it. I’m sure it can be relevant to everything and anything we do in life.

So why have I linked golf with name recognition training for a dog? It’s simple, the more you practice name recognition, the better your dog will become!

A great way to practice this with your dog is using their name at least 10 times per day while standing between two to six feet away from them. When your dog looks at you after hearing their name, reward this behavior with a treat or lots of praise. This incentive is what drives dogs to learn quicker and better.

Retain Focus
Ensure you do not offer a reward for anything other than making eye contact with you when you say their name. It’s important to be strict at this point and only offer a treat or praise when the objective has been achieved.

Be mindful that they may do things such as sit or lie down, but you must not reward them in this instance as they must distinguish the difference from commands to name recognition.

The Name Game
Start in an environment that limits distractions but is also familiar to your dog. A place of playfulness.
Throw a piece of their daily food, or a treat, around one meter away from where they are.

Once they finish eating this small piece of food, naturally, they should turn back with those puppy dog eyes that are saying, “Really? Is that it?”. This is where you offer them another treat for looking back.

When your dog is turning back frequently, it is the moment you begin to say their name just before they turn around and offer another reward.

Make it fun and playful! An idea is to leave a treat on the floor, and as soon as they’ve devoured it, as they so often do, you quickly say their name, run backward, and when they follow, you can then reward them with a treat or praise.

Finally, repeat the process a few times a day, and they will get to know their name in no time!

Loose Leash Walking and Heeling Effectiveness of Loose Leash Walking

When we take our dogs for a walk, it helps provide them with the daily exercise they need, and in most cases, it also gives us that much-needed exercise too. Additionally, walks are also great for socializing and meeting the mental needs that dogs carry.

Suppose your dog isn’t meeting its physical expectations. In that case, you can expect a lot of disruption, which can be projected in various ways such as destructiveness, going through garbage, hyperactiveness, attention-seeking behavior, episodes of barking, and the list goes on.

Why Do Dogs Pull and Chase?
In short, there’s no particular reason why dogs pull and chase; it is due to various factors. Dogs that are typically more excited and playful tend to pull their owners down the street while gravitating towards things that appeal to them or make them curious.

Now, when you attempt to pull backward in hopes of restraining your dog, they will usually counteract this action by pulling with more intensity, as most dogs tend to fight against this type of pressure.

Certain dogs with specific characteristics will pull differently, too. Dogs that are more forceful and aggressive to things such as children, other dogs, cyclists, or runners, will usually pull forward to chase down their target. On the other hand, dogs that can be rather timid and worried to leave home may pull forward on their way back home instead of during the walk.

The general objective for using the “walking on a loose leash” exercise is to teach your dog how to pay attention to you instead of other factors causing them to pull hard. Ideally, like a finely tuned outcome, your dog will very rarely pull on your leash, no matter what distraction is forced upon them, and will stay on a loose leash as they walk beside you. This won’t come easy, and it relies on consistent training, so be ready to put the work in!

Ditch The Tight Leash
Consider a tight leash as a vacuum cleaner. Yes, this is a strange analogy but hear me out first. When we use a vacuum cleaner, and the wire is loose, it works perfectly fine and can freely suck up any dirt. However, when we try to take the vacuum too far around the house, and the lead isn’t long enough, it then becomes tight, and before you know it, the plug has fallen from the socket—the vacuum is unable to do its job. A tight leash acts in a very similar way.

A tight leash prevents dogs from learning freely and halts them from making key decisions on their own, which of course, is essential for a dog learning the ropes. Loose leashes are also an important prerequisite for off-leash progression. Be mindful of this if you eventually want your dog to wander freely off their leash while trusting them to do so.

Accomplishing Walking on a Loose Leash
Like with any great results, accomplishment requires dedication and consistency. Learning to walk on a loose leash is certainly no exception. Here are a few steps to consider trying out when training your dog to walk gracefully on a loose leash:

Firstly, loosen that leash and do so with confidence.

Hold the end of your leash in one hand while gripping the handle with your opposite hand at around two to three feet.
When your dog becomes preoccupied with a distraction and starts to pull, call their name and walk in the opposing path of the distraction.

Your dog will turn around and wonder what you’re doing and why you aren’t paying them the usual attention by tightening the leash. This is when you implement the reward system so that they can associate this act as good behavior.

As this happens more frequently, your dog will soon realize that they will earn a reward if they can avoid the typical distractions. This is where consistency will matter most.

Finally, your dog now knows he must pay you attention instead of the other way around. That should stop with tight leashes and drastic pulling.

To progress this even further, you can start replacing his name with commands such as “here,” “come,” or “to me.”
The Three Top Commandments: Sit, Down, and Place

Before we get down and dirty, you should ensure you have a clicker and some rewards at the ready. Especially the rewards—you’re going to need them. A lot of them.

Anyway, a clicker is a brilliant piece of equipment that every dog owner should be using during training. It is a small device that lets out a short, distinctive “click” sound which tells your dog they’re doing the right thing. When you couple this with eye-bulging incentives, it becomes an effective means of training, and your dog should learn in no time. Clicker training doesn’t have to be used just for a specific command but across all types of exercise that require instruction of some sort.

Command
The sit command is fairly straightforward in terms of the objective, but it’s more how to implement a process to achieve the goal that matters most.

With that said, it doesn’t mean the results come as easy as understanding the task itself. Nevertheless, if you stick to the following information, you’ll have your pup sitting with ease in no time.

Teaching The Sit Command
First and foremost, you need to ensure your dog is on your left-hand side as you hold your loose leash in the opposite hand, accompanied by a treat or piece of their favorite food.

Secondly, you instruct the all-important command, for example, “Busta, sit,” before guiding the dog up towards their treat in your right hand.

While this is happening, you should be simultaneously guiding your dog’s butt downwards to the floor. As soon as contact is made, you must provide all the love and praise they crave and desire. Kind of like a small celebration in your dog’s honor. Don’t worry; you won’t be the first.

Be mindful that those are early stages, so don’t expect too much too soon, or as they say, “Bite off more than you can chew”. All we’re looking for at this stage is to get your dog to place his butt on the ground. When they achieve this, you can release them right away.


Sit and Stay, What’s The Difference?
The answer? Not an awful lot.

Stay, in a way, is a progression for the sit command. To initiate the staying phase, you must ensure your dog is ready in the sit position. Following this, you promptly issue a “sit” command from two steps away before taking a step forward, towards the front of your dog, with one foot and retreating immediately with one step back.

Repeat the sit command once again, but this time you will pivot, without breaking a bone, directly in front of your dog. At this point, just ensure you have your leash and hand at the ready in case they break their position, and you can revert them to where they originally were.

Timing has to be impeccable. As we mentioned before, you have a 1.3-second window to make the desired command so they can register what is going on without any distraction.

Not only is timing important here, but so is consistency. If your dog is breaking the command one after another without proper reinforcement, how on earth will they know what you want them to do? It could be just as annoying for them as it is for you.

They will only know that sit also means stay if you are consistent with the exercise, and before you know it, you’ll be getting them to stay from 10 feet away.

However, let’s not sprint before we can crawl. To get to this stage, it takes a lot of training and progression, so be prepared to put the work in.

From a Distance – Sit
Once you get to a competent stage, you will start performing the exercise under harder constraints such as leaving your leash on the floor or going further away in distance. When doing so, you must be extra careful with the 1.3-second rule; this will apply more than ever here.

If your dog happens to break the exercise, you will quickly intervene by saying something like, “No, no, no” or “Wrong” before walking back to them and starting them in their position before the break.

Let’s Go Downtown!
Teaching the down command has striking similarities to the sit command. However, the only notable difference is the change in direction of the guidance you’re giving.

Additionally, the down command is a little more challenging due to the nature of the act being a more submissive action. That can cause dogs to become restless and potentially resist. Don’t let this scare you, though, as all good things come to those that wait.

Teaching The Down Command
Firstly, your dog must be in a sitting position before all else. Then, you say your “Down” command while visually showing them what it is you mean.

To do this, I advise grasping the leash with a treat in one hand, around 6-8 inches from their mouth, before gently utilizing it to guide them down to the ground.

At the same time, your other hand will be placed on the dog’s shoulders to assist them in carefully placing them down. As soon as your dog hits the deck, you do what they love most – lots of praise, lots of love, and lots of treats!

Stay and Down, What’s The Difference?
Stay is a staple aspect amongst most commands, as we want our dogs to achieve an objective and stay there.

To teach the aspect of stay in the down command, you must ensure they are already in the down position before anything else. Next, you must repeat your down command before taking a step towards your dog and then a step back, exactly like the sit command. Again, once this has been achieved, we must use the almighty, yet dangerous (to some), pivot right in front of your dog.

Remember, you must have your leash at the ready, just in case they choose to break the exercise, so you’re able to put them back into position. Do not forget the 1.3-second rule! This applies to pretty much every time a dog needs to think and act on a specific command.

From a Distance – Down
The same applies here to the sit command. You must perform this exercise like a set of stepping stones that lead to a pot of gold. You must be sure you can make the next step without falling off track, or you will lose the objective at hand.

If your dog breaks the exercise once you start implementing it from afar, you will say, “No, no, no” or “Wrong,” and guide them back into the correct position and start again.

It’s The Place To Be
We all have our ideal place. Mine is a beach with some clear water, coupled with an ice-cold drink and some blistering sunshine.

Dog’s are no different, except we never really know what their ideal place is; however, imagine it would be a field full of toys and food. Anyway, what I’m trying to say is that dogs must have a place too, but you can actually give them one when they need some downtime.

An example of a dog’s place could be their bed. When the place command has been issued, the dog will promptly go to their bed with no questions asked. This, of course, is the end goal but, I’m going to show you how to reach that end goal.

Teaching The Place Command
From the onset, you will need a dog-sized bed that fits perfectly for your pup and has obvious boundaries. Secondly, you will need a slightly elevated surface, such as a low table. The risen surface helps your dog understand that their hind legs are there to be used and used for moments like this. However, if you don’t have this, you needn’t worry; the exercise can still be taught correctly, but it may take a little longer, that’s all.

Without using the bed at this point, you must ensure that your dog is confident and comfortable with getting onto the elevated place platform. Next, you will issue a “Place” command and guide them up to the risen surface until all four paws are secure in their place. Once you have mastered the exercise in their elevated position, you may then progress to using the bed instead.

Once this is done, can you guess what happens next? Yep, lots of praise, lots of love, and lots of rewards—my favorite. As soon as you’ve handed out the praise, carefully instruct them off of the place with a command such as “Free” or “Go” and recycle this process until familiarization has been achieved.

Once your dog is in its place, you must start to implement more boundaries, such as keeping close while facing them and acting as a barrier to avoid any sudden jumps. You will then slowly walk around the place as your dog tries to follow you with excitement.

The reward system for the place command is straightforward to adhere to, but it does require consistency along with everything else. Your dog should only receive a reward or praise if, and only if, they stay in their place. After they do so, you can prompt them with a release command such as “Go” and repeat the exercise all over again.

However, it should be noted that if your dog happens to break the exercise before the release command is given, you must say, “No, place!” before redirecting them back to their place position again.

Place Reinforcement
Initiate by walking around the place as you grasp your leash at around 3-4 feet away. If you’re able to walk around the place without your dog breaking the exercise, you may reward them with a treat, praise, or both. I tend to go for both because, why not? It helps them recognize what they are doing is good behavior. If they happen to break the exercise, as mentioned above, you must tell them what they did was wrong and guide them back into their place position.

The goal here is to teach your dog to a point where they make their own decisions without the need for your prompt. It helps enforce the difference between what should be expected vs. what’s not expected. Once you’ve made good progress from 3-4 feet away, it’s time to be adventurous and attempt a 6 footer while holding the end of the leash. Wait for the right time before you drop the leash and walk around them. If they stay in place, you can then dish out the much-needed love that they deserve.

Drop It and Leave It
Drop it and leave it are two very beneficial commands, which will come in handy throughout the entirety of your dog’s life. They’ll be many times when you need to use them, especially when playing a lighthearted game of catch or if your dog is about to go near something dangerous and needs to be alerted. As soon as you nail these two, teaching your dog is a walk in the park. Pardon the pun.

Teaching Your Dog To Drop It
We all need to teach our dogs to drop things, especially from the stage where they’re young, cute, and worryingly curious about everything they stumble across. Puppies are a nightmare for having something dangerous or important in their mouths. It is why teaching them to drop is more than essential to you and your dog.

The end goal is to eventually say the command, “Drop” or “Drop it,” and your dog will do so almost immediately, but getting to this stage requires a lot of leverage, and when I say leverage, I mean rewards.

 Over time, your dog will realize that dropping it upon command will result in a reward, so it makes sense for them to comply. Just think about it; imagine getting food every time you dropped something? Dog’s live the high life, don’t they?

The Step-By-Step Process

Gather a number of your dog’s favorite items they enjoy chewing on, along with your clicker and some tasty treats.

Grab a tasty treat in one hand as you prompt your dog to chew on a specific object. As soon as their mouth is on the object, push the piece of food near their nose and command, “Drop.” You must then use the clicker once they open their mouth before offering them a treat as you grab the object with your other hand.

Ideally, you should repeat this exercise approximately ten times a day for them to become familiar with it at a quicker rate.

This is where progression takes place. Once you’ve completed ten successful repetitions, you will refer back to point two above, yet this time, you won’t have a treat in your hand close to their nose.

How dare you?! I know, a little bit crafty, but it’s all for a good cause. It is to get them used to drop objects without the need for a treat.
Once you’ve reached this point, you must now use a hard chew. Grasp the chew in your hand and leave enough room for your dog to chew on the other side while you’re holding it tightly. As soon as their mouth grips on the chew, you must say, “Drop.” If they do this correctly, you can give them three of their tastiest treats along with the chew – this will make them love you even more!

Finally, you will repeat the above step, but we’re going to challenge the determined pup! The next step is to have the chew and tasty treats at the ready once more, but this time you will offer them the chew and let go immediately once they have a grip of it. You will then command, “Drop.” If done successfully, you can give them ten treats and the chew! – you will be putting them in a doggy utopia. However, if they decide not to drop the object, you can offer a small treat now and then as you progress to this level.

After they’ve mastered this, you can move onto objects they’re not supposed to chew, such as pens, pillows, socks, etc. Practice makes perfect, so ensure you’re putting in the work, and you will see results in no time!

Teaching Your Dog To Leave It
The end goal for this exercise is to steer your dog’s attention away from something they shouldn’t be next to, like roadkill, for example, just by instructing them to “Leave it.” This exercise is essential when around small, yet disastrous, objects such as medication, or food that could potentially harm them.

The Step-By-Step Process
Ensure you have some tasty treats in both your hands, not for you, but your dog. You’d be surprised at how many people pick up their favorite chocolate bar in two hands whenever I say this.

Next, you will let your dog smell one of your fists, so they pick up a scent. This is the moment when you will click and treat when they move away from your fist and offer the treat with your opposite hand. You should recycle this exercise until your dog is no longer interested in the treat that you initially present to them.

Offer the treat in an open palm but quickly close it if they try to steal it from you. While doing this, you must be mindful of your dog and their temperament, as aggressive dogs could cause injury. If this is the case, I advise covering it with something big and soft like a pillow as an alternative.  You will repeat this step until they decide to disregard the treat when your palm is open as you click and treat with your opposite hand.

This should be repeated every time until they consistently disregard your “decoy” treat. You may also use the command “Leave It” for every repetition you make when using the decoy treat.

Place one of those delicious incentives on the ground, and if your dog tries to make a sneak grab, you must quickly cover it with your hands. It’s worth mentioning that if you have slow reactions, your dog might be choosing your hand as a tasty snack instead, so make sure you’re quick! Again, be wary of your dog’s personality and use something soft and big to cover it if you want to play it safe. You should click and treat the second they look away from it and recycle the exercise until they no longer attempt to make a lunge every time you command, “Leave It.”

If progress is being made, it is where it starts to formulate a little easier. Step four is when you set the treat on the floor and command “Leave It” as you’re standing up. Shelter the treat with your foot or something that’s soft and shields it well if they attempt to make a snatch but click and treat if they disregard it and repeat it several times.

The next step is to attempt the exercise but with the aid of a leash. You should walk past the treat while holding the leash as you command, “Leave It.” If they try and go for a treat, you will pull back on the leash to signal that they aren’t listening. However, if they disregard the decoy treat, you can implement a click and treat right away for their hard work.

Once your dog is more than competent with the above steps, you can start to get creative with the exercises by placing treats on their paws or even gradually increasing the wait time length before they’re allowed to have the treat. Be fun; dogs like having fun even more than humans!

Finally, you will eventually get to a point where you are implementing the “Leave It” command with everyday objects instead of treats. If your dog can disregard general living room items after your command, you have achieved the end goal. Well done!

Recall

Ah yes, the almighty recall. Debatably the most important exercise to teach your dog in its entire lifetime. This command can bring your dog back before they imminently destroy the local kid’s ball at the park or keep them away from any type of danger that may hurt them.

The end goal is to walk in the opposite direction to your dog as they are preoccupied with something and shout their name, followed by the word, “Come.” If taught correctly, they will sprint quicker than a speeding bullet before applying the brakes and sitting still directly next to you.


Teaching The Recall
To start this exercise, you need a leash that is approximately 6 feet in length. You must ensure that the leash is loose at all times while your dog has their attention on something that’s in front of you. After this, you will say the command, “Come” or “Here” as you administer a gentle tug on their leash in your direction.

It also helps to back up as you’re now presenting yourself as a moving target for your dog to focus on, so when they do begin to walk back in your direction, ensure they are rewarded for their efforts.

Another excellent method to implement is to have somebody hold your dog (preferably not a stranger that likes to steal dogs) on a leash as you walk away in the distance before giving out the “Come” or “Here” command.

They will usually wonder where you’re going and follow you instantly, but if you find that they are hesitant, a great way to overcome this is to bend/kneel with open arms as you encourage them to come to you.

As usual, it’s only fair we reward our canine friends with a reward whenever they master this exercise, whether it’s on or off the leash. We want them to think that coming back to us from a recall is in their favor, and they are getting something out of it. This is what will give them the motivation to learn this exercise.

As you progress the recall, you will begin to expand your distance over time. With this in mind, it may be an idea to acquire a few leashes of different sizes so you can get the very best from this recall exercise.

Distractions During Recall
As you begin to improve the recall by moving further away, the potential for distractions is higher, as the gap between you and your dog allows more time for them to appear. In short, the recall must be direct, and you need to avoid your dog getting distracted by other variables, such as birds, balls, dogs, or stopping to smell and go to the toilet.

If your dog happens to get distracted from the task at hand, you should always have your trusty leash at the ready, so you’re able to gently provide that light pull and direct them back into your path. Now, if your dog struggles to grasp the recall, you should think about making it more enjoyable so they want to grasp it. Try offering more treats, toys, and praise if this is the case.


Part 3: Solving Common Problems
Welcome to the final part of the e-book! Here we will discuss some common problems and how to correct them in your day-to-day life. Although there’s many to choose from, we decided to include, what we thought, were the most important ones to solve early on in the training stages.

Housetraining Avoiding Mistakes Is a Priority
Firstly, this section is more applicable to puppies as opposed to adult dogs. However, that’s not to say these tactics wouldn’t work with adult dogs who have been poorly housetrained. On the contrary, you can also implement them freely with dogs of all ages if needed.

In aid of housetraining dogs, you must be aware that dogs, in general, are very particular about where they venture to. It’s vitally important for them to build solid foundations in their everyday habits.

With that said, it’s also just as important to anticipate potty accidents before they arise. Every time your dog feels the need to go to the toilet inside the house, it is actually due to them having a soft spotted preference for that area. In other words, if your dog takes a monstrous leak in the corner of the freshly cleaned kitchen, please don’t blame them, but instead, look in the mirror and take accountability. When you were a baby and you used to pee everywhere, was that your fault? I think not.

If your dog hasn’t learned to use nature’s big outdoors to relieve themselves just yet, you must ensure they are being monitored at all times. I’ve been there myself where I’ve been distracted for 15 seconds, took a step to my right, and then I’m knee-deep in a pool of dog relief. It’s not a nice feeling.

Lucky for you, there are some telltale signs to look out for when anticipating an oncoming toilet break. If your dog happens to be circling or sniffing along the floor, the likelihood of them going to the toilet is high. If you see this behavior, you should get them outside immediately.

Once they’ve done the deed, why not reward them with a small treat? This will help associate that going to the toilet outside will earn them some goodies. I would encourage you to take your dog outside, especially if they’re a pup, within 15 minutes after every meal. However, if accidents are frequent at the beginning you should consider adding more breaks between these meals so it becomes a familiar process for them. Another thing,  if you take them out and they don’t let the river flow, don’t sweat, simply take them back in for around 10-15 minutes then try again.


Keep a Routine
Taking your dog out often throughout the day is an essential part of training them and even more so after eating, playing, or sleeping. You should aim to feed your dog approximately 2-3 times per day while leaving it around 15 minutes in total for any food to digest properly. Of course, the quantity of food will depend on the size and breed of your dog, and also their age bracket too. I would advise contacting your vet regarding this as they will be able to offer more accurate recommendations for you.

Now, a great indicator for telling how long a dog can hold themselves is considering their age in months + one hour, but never exceeding the 8-hour mark as an adult. Three hours for a two-month-old puppy, six hours for a five-month-old one, etc.

The key here is to get them outside for as much as possible, in short stints, as it drastically limits the number of potential mistakes. However, on the other hand, it also increases the number of rewards for your dog. It’s a win-win!

Jumping Unprovoked
Jumping up is a very common problem for dogs, and it’s a reason why many owners tend to ignore them before ultimately sending them to the backyard. Although jumping up can be annoying, it’s probably best not to send them to a place where they can cause more mess in an excited state.

The backyard can be subject to excessive barking and biting things they aren’t supposed to, amongst many other things.

Why Do Dogs Jump Unprovoked?
Great question. Believe it or not, it’s a way of them being extra friendly to you. They see us, humans, standing on two legs. Dogs being dogs, they want to greet us by jumping up to try and get on our level. This can be due to them wanting to say “Hi!”, “Bye!”, or maybe they’re just overly excited about your presence.

Preventing Dogs From Jumping Up
The primary goal here is to ensure consistency at all times, regardless of how you decide to train your dog. If you let your dog jump on you after a hard day of work on the building site while in your dirty uniform, chances are they won’t see a problem with jumping on you 5 minutes before you leave for a black-tie event at the local country club.

You have to remember that dogs can’t distinguish the difference between good or bad clothes. You must be mindful that letting them jump up when you deem it okay may be setting a bad precedent for them. Here are some tips to help deal with your bouncing pup:

Get Them to Sit: The sit command makes your life a whole lot easier the earlier it’s implemented. It’s one of, if not the most, fundamental commands every pup should be taught.
Every moment your dog decides to turn into a pogo stick, tell them to sit immediately. Once they’ve done this successfully, you can reward them with praise. This will show them that jumping up is bad, and if they don’t do so, they will receive love and attention.

Fetch!: This is perfect if you have an over-excited pup, and telling them to sit just doesn’t work. It makes it a great chance to burn off this extra energy and excitement with a game of fetch. So once you’ve played for a fair amount of time and they’re all burnt out, attempt to calm them down and request them to sit so regain some normality.

Show Them Your Back: Now, this one depends on how persistent your dog is. You may need to turn your back on them for 15 seconds or 10 minutes. Regardless of how long it takes, it always falls to consistency, so make sure you stick to your guns and outwait them no matter how long.

Unless you’re standing there for 24 hours—at that point, I would probably call a dog therapist.


Barking
8 Reasons Why Your Dog Is Barking
There’s an array of reasons why dogs bark, and sometimes it’s going to be hard to tell which is which, so I’ll break down eight simple reasons why your dog may be barking. Here we go:

Barking = Greeting: You probably know this already, but some dogs get over-excited when they see a certain somebody or maybe their friends from the local park. It’s common for them to wag their tail while they bark or even let out an enormous whining noise as a friendly greeting.

It’s a Territory Thing: Barking over territory often occurs when a dog sees a stranger, such as a mailman who’s encroaching on the dog’s turf. Because they aren’t familiar with this person, it causes them to go into defense mode and bark them away.

They’re Scared: This is quite similar to territory barking only due to the defensive nature of the bark. However, instead of them barking at a stranger, this time they could be barking at an unusual sound or sight within their environment. They will instinctively bark because they don’t know what it is.

They Want Fun: In some cases, dogs will bark because they just want some attention. If they’re in the living room with all the family and start to bark, there’s a good chance that all they need is some treats or playtime!

Separation Anxiety: Dogs can often feel very anxious when their owners leave them for a while, which is why they may bark excessively over a prolonged period. They just miss you when you’re gone!

Trying To Be Social: Another reason for them barking could be down to social elements. For example, if they see or hear another dog barking, this could ultimately trigger a barking response back at them.

Frustration: Dogs can get frustrated just like us humans! Except they don’t pay bills as we do, so what on earth can they be stressed about? Well, they can become restless when they’re tied to a leash, and they want the freedom to play. They will express their frustration through means of barking.

In Discomfort or Pain: The worst-case scenario for your dog barking is that they are in some kind of discomfort or pain due to sickness or an injury. Typically, in this case, they would let out a distinct whine and bark. If you notice this, please take them to a veterinarian as soon as possible to seek medical attention.


7 Tips To Stop Your Dog Barking
Now we’ve covered the reasons why our dogs may bark, let’s move on and discuss seven stellar tips for training your dog to stop excessive barking, so it can improve their overall behavior:

Finding a Cause: It should be noted that not all types of barking are an indicator of poor temperament. With this in mind, it’s vital to highlight the cause of your dogs barking before training them to be quiet. You must identify the initial cause from where or when the barking seems to happen, and after you’ve determined this, you can put training in place to prevent it from persisting.

Cut Out The Catalyst: If, for example, your dog is barking for territorial purposes, you must analyze the environment and quickly remove or block out the sound or sights provoking your dog’s barking episodes.

Divert Attention: When you’re out walking your dog, or even sitting down outside a cafe with them, and they’re excessively barking at every passerby they come across, you need to divert their attention right away. Ensure you have a pocket full of dog treats, and if they succeed in not barking when somebody walks by, you may offer them a reward. Place command is also a great way of diverting their attention when at home. For example, if somebody is approaching the front door.

Ignorance Is Bliss: Sometimes, dogs have an annoying habit of barking for sheer attention. However, a way to reverse this is to simply ignore them. Yep, you heard correct. Ignore them till they’re all barked out.

You must not make any type of interaction, whether this is eye contact or reprimanding them. When your dog finally reads your body language and stops, you may then reward them for their efforts accordingly.

Fix Their Confinement: Barking issues may arise from their confined environments, such as being locked in a cage for too long. If you find your dog stays inside their cage way too often and they’re excessively barking, they may just want to go outside and roam the great outdoors.

We mustn’t forget that dogs need exercise and mental relaxation just like us humans. Let them do what they love.

Pump Up The Speakers: Playing music when your dog is having a barking episode is another great way to distract them—especially when they can hear construction or other dogs barking outside. Get some relaxing music on and turn it up to a decent volume; this should stop your dog barking in no time.
Behavior Training: Instilling some training to improve your dog’s overall obedience is essential. It helps throughout many occasions, but being able to teach your dog to sit and stay also stimulates control, which can help avoid barking incidents.
Nipping
Do you know that moment when you’re first acquainted with those beautiful beady puppy eyes? That moment where you discover unfathomable amounts of joy and love as you run your hands through their soft puppy fur? That moment when you tell yourself how amazing this puppy is…and then they take a good old nip from your hand.

Yeah, we’ve all been there. However, you can act early to prevent your pup from making this a bad habit as they grow into adulthood.


Teething vs. Nipping
As you may notice from the dents in your skin, puppies start their journey with 30 small needle-like teeth in their mouths. As they become adults, these teeth are eventually replaced by 40 fully-grown ones, but this is no painless road.

It is a constant battle for them to suppress teething’s pain, so they feel the need to bite, nip, and pretty much chew anything they can get their mouths on—pretty much like our own human babies.

The main difference between teething and nipping is usually quite easy to distinguish, as a teething puppy will often gnaw or gently nibble on your hands, feet, or some subcutaneous skin on your arm or legs. In comparison, nipping will typically occur when your puppy is excited and very playful.

Appropriate Measures If They Nip or Bite
If your pup begins to nip at you, it’s imperative to put a stop to it right away but correctly. For example, if it’s playtime with your pup and they take a gentle nip at your foot, peacefully express this via a neutral sound such as an “ouch” before you instantly put a halt to any further playtime. You should then ignore them until they’ve settled down and are no longer in a nipping state.

If they do this correctly after reading your body language, reward them with a treat and praise as this will establish that nipping during playtime means no more playtime. This is greatly effective with pups; all they want to do is play, so if you take that from them, they will soon fix up and realize that the fun stops if they do it again. The same intervention also applies when your dog is gnawing or teething.

One thing I must reaffirm is that you must never shout or hit your puppy. This can hurt the results you’re trying to achieve by forcing your dog to be scared of you and, in the long run, could exacerbate your dogs biting tendencies but in a more aggressive nature.

Conclusion
I hope you learned a thing or two from the above information. It was great to put this together for all dog-lovers across the globe to help them teach their dog in the very best way possible.

If I were to give you one more piece of advice, it would be to take it slowly but surely. Remember, this is a marathon, not a sprint. Take it one step at a time and use progression and regression to your advantage. You’ll both see results in little to no time. Sometimes your pup will get it wrong, but I can guarantee you will get it wrong more. This is normal, as, in theory, you’re both learning the ropes, so be inventive, be fun, be consistent, and above all else, be loving!

Source: https://stayyy.com/ultimate-guide-to-dog-training/

Pages: 1 [2] 3 4 ... 125