Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - farjana aovi

Pages: 1 ... 3 4 [5] 6 7 ... 9
61
Anatomy & Physiology / Our Digestion System
« on: August 03, 2018, 03:40:53 PM »

62
Pharmacy / Measles
« on: August 03, 2018, 03:38:31 PM »
Measles is a highly infectious viral illness that can be very unpleasant and sometimes lead to serious complications.

Anyone can get measles if they haven't been vaccinated or they haven't had it before, although it's most common in young children.

The infection usually clears in around 7 to 10 days.
Symptoms of measles

The initial symptoms of measles develop around 10 days after you're infected.

These can include:

    cold-like symptoms, such as a runny nose, sneezing, and a cough
    sore, red eyes that may be sensitive to light
    a high temperature (fever), which may reach around 40C (104F)
    small greyish-white spots on the inside of the cheeks

A few days later, a red-brown blotchy rash will appear. This usually starts on the head or upper neck, before spreading outwards to the rest of the body.
How measles is spread

The measles virus is contained in the millions of tiny droplets that come out of the nose and mouth when an infected person coughs or sneezes. How measles can be prevented

Measles can be prevented by having the measles, mumps and rubella (MMR) vaccine.
Sources: NHS UK

63
Pharmacy / Febrile convulsions-What you need to know
« on: July 31, 2018, 12:52:10 PM »
Febrile convulsions

    A febrile convulsion is a fit or seizure caused by a sudden change in your child's body temperature, and is usually associated with a fever (see our fact sheet Fever in children).

    Febrile convulsions may be alarming and upsetting to witness, but they are not harmful to your child. Even very long convulsions lasting an hour or more almost never cause harm. Febrile convulsions do not cause brain damage, and there is no increased risk of epilepsy in children who have had simple febrile convulsions.

    Most children with fever suffer only minor discomfort; however, one child in 30 will have a febrile convulsion as a result of fever. Febrile convulsions most commonly happen between the ages of six months and six years. Usually, children who have a febrile convulsion will only ever have just one.

    Treating a child’s fever with paracetamol or ibuprofen will not prevent a febrile convulsion.
    Signs and symptoms of febrile convulsions

    During a febrile convulsion:
        your child will usually lose consciousness
        their muscles may stiffen or jerk
        your child may go red or blue in the face.

    The convulsion may last for several minutes. When the movements stop, your child will regain consciousness, but they will probably remain sleepy or irritated afterwards.

    Usually, a febrile convulsion happens if your child's temperature goes up suddenly. Sometimes, a convulsion occurs before parents actually realise their child has a fever.
    What to do during a convulsion

    There is nothing you can do to make the convulsion stop.
        The most important thing is to stay calm – don't panic.
        Place your child on a soft surface, lying on their side or back.
        Try to watch exactly what happens, so that you can describe it to the doctor later. It can be useful if you are able to record video footage of the convulsion to show the doctor.
        Time how long the convulsion lasts, if possible.
        Do not restrain your child.
        Do not put anything in their mouth, including your fingers. Your child will not choke or swallow their tongue.
        Do not put a child who is having a convulsion in the bath to lower their temperature.
    When to see a doctor

    If your child’s febrile convulsion lasts less than five minutes, make an appointment to see your GP as soon as possible to find out the cause of the fever that caused the convulsion.

    If the convulsion was less than five minutes long and your child was very unwell before the convulsion, take them to see your GP or visit to your nearest hospital emergency department immediately. It may be OK to take the child in your own car, but only do this if there are two adults –  one to drive and one to look after the child. Drive very carefully. A few minutes longer will not make any important difference.

    Call an ambulance immediately if:
        it is your child's first convulsion
        the convulsion lasts more than five minutes
        your child does not wake up when the convulsion stops
        your child looks very sick when the convulsion stops.

    Occasionally, children who have had a long convulsion need to be watched in hospital for a while afterwards. This is usually to work out the cause of the fever and watch the course of your child's illness.
    Care at home

    In most cases, you can look after your child at home after a doctor has seen them for a febrile convulsion.
        Your child may be a little cranky for a day or so, but this will pass.
        Resume your usual routines.
        Put your child to sleep at the usual time, in his or her own bed. Don't worry about whether you will hear a convulsion; a bed or cot is a safe place for a convulsion.

    While most children will only ever have one febrile convulsion, some children will have more than one seizure, usually during illnesses that cause a fever. Most children who have febrile convulsions do not have any long-term health problems. They will normally grow out of them by the age of six.

    If your child has repeated long convulsions, it may be helpful to visit a general paediatrician (specialist children's doctor). Discuss this with your GP or hospital emergency department.
    Fever care

    A fever is the body's natural response to infection, and it is not always necessary to reduce a fever. Treating your child’s fever with paracetamol or ibuprofen will not prevent a febrile convulsion. However, if the fever is making your child miserable, you can help them to feel more comfortable by following the advice in our fact sheet Fever in children.
    Key points to remember
        One in 30 children have a febrile convulsion at one time or another, usually between the ages of six months and six years.
        Nothing can be done to prevent a febrile convulsion from occurring.
        During a convulsion, remain calm and try not to panic. Do not put your child in a bath, restrain them, or put anything in their mouth.
        Febrile convulsions are not harmful to your child, and will not cause brain damage.
        If the convulsion lasts more than five minutes call an ambulance.
        If the convulsion lasts less than five minutes and your child was very unwell before the convulsion, take them to the GP or hospital emergency department as soon as possible. Otherwise, make an appointment to see your GP

sources: The Royal Children's Hospital Melbourne

64
Pharmacy / Newborn jaundice
« on: July 31, 2018, 12:45:16 PM »
Jaundice is a common and usually harmless condition in newborn babies that causes yellowing of the skin and the whites of the eyes. The medical term for jaundice in babies is neonatal jaundice.

Other symptoms of newborn jaundice can include:

    yellowing of the palms of the hands or soles of the feet

    dark, yellow urine – a newborn baby's urine should be colourless
    pale-coloured poo – it should be yellow or orange

The symptoms of newborn jaundice usually develop two to three days after the birth and tend to get better without treatment by the time the baby is about two weeks old.Jaundice is caused by the build-up of bilirubin in the blood. Bilirubin is a yellow substance produced when red blood cells are broken down.

Jaundice is common in newborn babies because babies have a high level of red blood cells in their blood, which are broken down and replaced frequently. The liver in newborn babies is also not fully developed, so it's less effective at removing the bilirubin from the blood.

By the time a baby is about two weeks old, their liver is more effective at processing bilirubin, so jaundice often corrects itself by this age without causing any harm.

In a small number of cases, jaundice can be the sign of an underlying health condition. This is often the case if jaundice develops shortly after birth (within the first 24 hours).Treating newborn jaundice

Most cases of jaundice in babies don't need treatment as the symptoms normally pass within 10 to 14 days, although symptoms can last longer in a minority of cases.

Treatment is usually only recommended if tests show a baby has very high levels of bilirubin in their blood because there's a small risk the bilirubin could pass into the brain and cause brain damage.

There are two main treatments that can be carried out in hospital to quickly reduce your baby's bilirubin levels. These are:

    phototherapy – a special type of light shines on the skin, which alters the bilirubin into a form that can be more easily broken down by the liver
    an exchange transfusion – a type of blood transfusion where small amounts of your baby's blood are removed and replaced with blood from a matching donor

Most babies respond well to treatment and can leave hospital after a few days.
Sources: https://www.nhs.uk/conditions/jaundice-newborn/

65
ccording to WHO, liver diseases are the 10th most common cause of death in India. That should be enough motivation for you to want to keep your liver in perfect condition. It’s the largest organ in your body and is like a factory which processes all the food that we take in.

“It processes all the glucose, fat, etc from the intestine. So, it’s a very important part of the body which helps in digesting food,” says Dr Nilesh Doctor, gastrointestinal surgeon, Bhatia Hospital Mumbai.

On the occasion of World Liver Day, he shares all you need to know about liver health:

* Lifestyle diseases like obesity and diabetes have a profound impact upon the liver. It can lead to fatty lever disease. That can cause liver dysfunction and liver cirrhosis. If you are suffering from diabetes or high cholesterol, it is crucial that you manage them. Strict control of diabetes is important so that the chances of high sugar damaging the liver are lesser.

* Ensure you don’t eat a lot of fried or fast food. Your diet should be basically one that ensures you don’t end up obese or diabetic.

* Alcohol is a substance that can be toxic to the liver if consumed in large quantities. The upper limit would be drinking 7-8 large pegs per week. Beyond that, it can become dangerous. Over a period of 10 to 20 years, it can cause damage to the liver. When consumed in moderation though, alcohol is not a problem.
Source:
Hindustimes
Sunday, Jul 29, 2018

66
খাবার ও পানির মাধ্যমে জীবাণু শরীরের ভেতর প্রবেশ করে। ঘন ঘন পাতলা পায়খানা হওয়াও ডায়রিয়া, যা সাধারণত ২৪ ঘণ্টায় তিনবার বা তারও বেশিবার হয়। যদি পানির পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়, তাকে ডায়রিয়া বলে ধরে নেওয়া হয়। আবার পায়খানা বারবার হলেও মল যদি পাতলা না হয়, তা ডায়রিয়া নয়। সাধারণত তিন থেকে সাত দিন পর্যন্ত থাকতে পারে। সবচেয়ে বড় জটিলতা হচ্ছে পানিশূন্যতা। পানিশূন্যতা হলে শিশু দুর্বল হয়ে পড়ে, এমনকি শিশুর জীবন বিপন্ন হতে পারে।

এ বিষয়ে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল হাসপাতালের শিশু বিভাগের অধ্যাপক আল-আমিন মৃধা বলেন, মনে রাখতে হবে, শুধু মায়ের দুধ পান করে এমন শিশু অনেক সময় দিনে পাঁচ-দশবার পর্যন্ত পায়খানা করতে পারে, যা সামান্য তরল হয়, একে ডায়রিয়া বলা যাবে না। শিশু যদি খেলাধুলা করে, হাসিখুশি থাকে, তাহলে এর অন্য কোনো চিকিৎসার প্রয়োজন নেই।

ডায়রিয়ার প্রকারভেদ

তীব্র ডায়রিয়া: এটা হঠাৎ শুরু হয়ে কয়েক ঘণ্টা বা কয়েক দিন স্থায়ী হয়। তবে কখনো ১৪ দিনের বেশি নয় এবং পায়খানার সঙ্গে কোনো রক্ত যায় না।

দীর্ঘমেয়াদি ডায়রিয়া: পাতলা পায়খানা ১৪ দিনের বেশি স্থায়ী হলে।

জলীয় ডায়রিয়া: মল খুবই পাতলা হয়, ক্ষেত্রবিশেষে একেবারে পানির মতো। মলে কোনো রক্ত থাকে না।

আমাশয় বা ডিসেন্ট্রি: রক্তমিশ্রিত পায়খানা।

কারণ

কতগুলো রোগজীবাণু খাদ্যনালিতে প্রবেশ করে ডায়রিয়া ঘটায়। এগুলো রোটাভাইরাস, ই-কোলাই, সিগেলা, ভিবরিও কলেরা, প্যারাসাইট-এন্টামিবা হিস্টোলাইটিকা ও জিয়ারডিয়া প্রভৃতি নামে পরিচিত। সাধারণত খাদ্য বা পানীয়ের দ্বারা ডায়রিয়ার জীবাণু খাদ্যনালিতে প্রবেশ করে। এর অন্যতম মাধ্যম অপরিষ্কার হাত, গ্লাস, চামচ, বাসনপত্র বা সচরাচর ব্যবহৃত অন্যান্য জিনিসপত্র, মল, মাছি ইত্যাদি।

কীভাবে বুঝবেন পানিস্বল্পতা নেই

শিশুর চোখ যদি স্বাভাবিক ও পানিসমৃদ্ধ থাকে, মুখ ও জিব ভেজা থাকে, তৃষ্ণার্ত না হয়ে স্বাভাবিকভাবে পানি পান করে, পেটের চামড়া ধরে ছেড়ে দিলে দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়, বুঝতে হবে শিশুর পানিস্বল্পতা নেই।

এ অবস্থায় প্রয়োজনমতো পানি, খাবার স্যালাইন বা লবণ-গুড়ের শরবত দেওয়া যেতে পারে।

কিছু পানিস্বল্পতা?

শিশুর অবস্থা যদি অস্থির, খিটখিটে হয়, তার চোখ যদি বসে যায়, চোখে যদি পানি না থাকে, মুখ ও জিহ্বা যদি শুকনো থাকে, যদি বেশি তৃষ্ণার্ত থাকে, পেটের চামড়া ধরে ছেড়ে দিলে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়—শিশুর শরীরে এসবের দুই বা ততোধিক চিহ্ন থাকলে বুঝতে হবে ‘কিছু পানিস্বল্পতা’র স্তরে রয়েছে।

বেশি বেশি খাবার স্যালাইন, বুকের দুধ, ভাতের মাড়, পানি, ডাবের পানি কিংবা শুধু পানি খাওয়াতে হবে। প্রতি এক ঘণ্টা অন্তর রোগীকে পরীক্ষা করে পানিঘাটতির স্তর নির্ণয় করে দেখতে হবে যে রোগী কোন স্তরে আছে। সে অনুযায়ী চিকিৎসা নিতে হবে।

চরম পানিস্বল্পতা?

যদি অবসন্ন, নেতিয়ে পড়া, অজ্ঞান কিংবা ঘুম ঘুম ভাব থাকে, চোখ বেশি বসে যায় এবং শুকনো দেখায়, চোখে পানি না থাকে, মুখ ও জিহ্বা খুব শুকনো থাকে, পানি পান করতেও কষ্ট হয় কিংবা একেবারেই পারে না, পেটের চামড়া ধরে ছেড়ে দিলে অত্যন্ত ধীরে ধীরে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যায়—শিশুর শরীরে এসবের মধ্যে দুই বা ততোধিক চিহ্ন থাকলে বুঝতে হবে শিশুটি ‘চরম পানিস্বল্পতা’ স্তরে রয়েছে।

চরম পানিস্বল্পতা অবস্থার জরুরি চিকিৎসায় তৎক্ষণাৎ শিরায় স্যালাইন দিতে পারলে ভালো। এ জন্য শিশুকে কাছের কোনো হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে।

স্যালাইন বানানোর পর তা কতক্ষণ সময় পর্যন্ত খাওয়াতে পারবেন?

প্যাকেট থেকে তৈরি করা খাবার স্যালাইন ১২ ঘণ্টা ব্যবহার করা যায়। ১২ ঘণ্টা পর অবশিষ্ট থাকলেও তা ফেলে দিয়ে নতুন করে স্যালাইন তৈরি করে খাওয়াতে হবে। আবার ঘরে তৈরি করা লবণ-গুড় অথবা চিনির শরবত ৬ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়। এরপর তা অবশিষ্ট থাকলেও ফেলে দিয়ে নতুন করে স্যালাইন বা শরবত তৈরি করে খাওয়াতে হবে। তরল খাবারের পাশাপাশি খাওয়ার স্যালাইন দিতে হবে। শিশুর ওরস্যালাইনের পরিমাণ হচ্ছে, প্রতিবার পাতলা পায়খানার পর ২৪ মাসের কম বয়সী শিশুর জন্য ৫০-১০০ মিলি, ২-১০ বছর বয়সী ‍শিশুর জন্য ১০০-২০০ মিলি এবং ১০ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য চাহিদা অনুযায়ী।

কিছু পরামর্শ

    যারা বুকের দুধ খায় তাদের বারবার বুকের দুধ দিতে হবে।
    শিশু যদি বমি করে তাহলে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে আবার খাওয়াতে হবে।
    ডায়রিয়া ভালো হয়ে গেলেও পরবর্তী ২ সপ্তাহ শিশুকে এর কমভাবে বাড়তি খাবার প্রতিদিন দিতে হবে।
    চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত কোনো অ্যান্টিবায়োটিক বা অন্য কোনো ওষুধ শিশুকে খাওয়ানো যাবে না।
    ডায়রিয়া এড়াতে হলে পরিবারের সবাইকে ভালোমতো হাত ধোয়ার অভ্যাস করতে হবে। বিশেষত খাওয়ার আগে, শিশুকে খাওয়ানোর আগে, পায়খানা করার পর, শিশুর পায়খানা পরিষ্কার করার পর, রান্না করার আগে, খাবার পরিবেশন করার আগে অবশ্যই সাবান ও যথেষ্ট পরিমাণ পরিষ্কার পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে।
    শিশুর ও নিজের নিয়মিত নখ কাটা, প্রতিদিন গোসল, বাচ্চাকে দুধ দেওয়ার আগে স্তন পরিষ্কার ইত্যাদি করা।
    জন্মের প্রথম ছয় মাস পর্যন্ত শিশুকে শুধু বুকের দুধ খাওয়ানো। কেননা বুকের দুধ খাওয়ালে শিশুর ডায়রিয়া হয় না, কারণ বুকের দুধ জীবাণুমুক্ত শিশুরোগ প্রতিরোধকারী। বোতলে দুধ খাওয়ালে ডায়রিয়া বেশি হয়। কারণ বোতল সব সময় পরিষ্কার রাখা কখনোই সম্ভব নয়। তবে ছয় মাস বয়স হওয়ার পর থেকে শিশুকে বুকের দুধের পাশাপাশি অন্যান্য খাবার পরিবারের সবাই যা খায় তা নরম করে খাওয়াতে হবে।
    স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা তৈরি করতে হবে এবং বাড়ির ছোট-বড় সবাইকে সেখানে মলত্যাগ করতে হবে। পায়খানায় যেন মাছি না ঢুকতে পারে এবং মল যেন ডোবা, পুকুর, নদী বা ব্যবহার করার পানির সঙ্গে না মেশে, এরূপভাবে পায়খানা তৈরি করতে হবে।
    ছোট শিশুদের পায়খানা বড়দের মতোই রোগ ছড়াতে পারে, বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরও বেশি। তাই শিশু পায়খানা করার পরপরই তা তুলে নিয়ে বড়দের বাথরুমে ফেলতে হবে। পায়খানা করার পর শিশুদের পরিষ্কার করে সেই পানিও ফেলে দিতে হবে।

Source:লেখক: চিকিৎসক

67
গায়ে নিয়মিত রোদ না লাগালে রক্তে ভিটামিন ডি কমে যায়। ভিটামিন ডি ছাড়া আমাদের অন্ত্রে ক্যালসিয়াম শোষণ হয় না, ফলে হাড়ের ঘনত্ব কমে যেতে পারে। এ ছাড়া ডায়াবেটিস, মেটাবলিক সিনড্রোমসহ আরও নানা রোগের সঙ্গে ভিটামিন ডির সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। আবার সূর্যালোকের অতিবেগুনি রশ্মি ত্বকের ক্যানসারের জন্যও দায়ী। তাই বিশেষজ্ঞরা রোদে বেশি পুড়তে নিষেধও করেন। তাহলে কতটা রোদ আসলে ভালো?

: আমাদের ত্বকে রোদ পড়ার পর ভিটামিন ডি শোষিত হয় এবং যকৃৎ ও কিডনির মাধ্যমে বিভিন্ন পর্যায় পার হয়ে রক্তে উপকারী ভিটামিন ডি-এ রূপান্তরিত হয়। এই ভিটামিন ডি তখন ক্যালসিয়াম শোষণসহ নানা কাজে আসে। দুগ্ধজাত খাবার, সামুদ্রিক মাছ, ডিমের কুসুম, কমলার রস ইত্যাদি কিছু খাবারে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়, কিন্তু তা যথেষ্ট নয়। তাই এখন পর্যন্ত সূর্যের আলোই ভিটামিন ডির সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ও সস্তা উৎস। এ ছাড়া ত্বকের মেলানিন ও পরিবেশদূষণের কারণে আমরা ভিটামিন ডি কম পাই। তাই যথেষ্ট ভিটামিন ডি পেতে হলে রোদে প্রতিদিন একটু-আধটু বের হওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

: দুপুরের খাড়া রোদে অতিবেগুনি রশ্মি বেশি। এটি ত্বকের জন্য ক্ষতিকারক। বলা হয়, সকাল নয়টা থেকে বেলা তিনটা পর্যন্ত যতক্ষণ ছায়া ছোট থাকে, ততক্ষণ সূর্য অতিবেগুনি রশ্মি বেশি ছড়ায়। এই সময়ের আগে বা পরে প্রতিদিন ২০ মিনিট রোদে হাঁটাহাঁটি করলে পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি পাওয়া যাবে কোনো ক্ষতি ছাড়া।

: অতিবেগুনি রশ্মির ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য ত্বকে সানস্ক্রিন লাগিয়ে রোদে হাঁটাহাঁটি করা যায়। অতিবেগুনি রশ্মির প্রভাব আমাদের মতো তামাটে বা কালো ত্বকে কিছুটা কম। সানস্ক্রিন লাগালে ভিটামিন ডি কম পাওয়া যাবে, এ ধারণাও ভুল। সবচেয়ে ভালো হলো যখন রোদ নরম থাকে (ভোর ও বিকেল) হাত-পায়ের কিছু অংশ অনাবৃত করে গায়ে রোদ লাগানো।
Source: Prothom Alo

68
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব শিক্ষার্থীর শিশুসন্তান আছে, তাদের জন্য ডে–কেয়ার সেন্টার চালু করেছে। ছুটির দিন ছাড়া অন্যান্য দিন শিক্ষার্থীরা তাঁদের সন্তানদের ডে–কেয়ার সেন্টারে রাখতে পারবেন। সেন্টারটিতে শিশুদের জন্য থাকা, খাওয়া, ঘুম, প্রাথমিক চিকিৎসা, খেলাধুলা, বিনোদন ও প্রি–স্কুলের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এটা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিঃসন্দেহে খুবই ভালো একটি উদ্যোগ। আমরা মনে করি, দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠানে এ রকম ডে–কেয়ার সেন্টার থাকা খুবই জরুরি।

নারী শিক্ষার্থী ও কর্মজীবী নারী, যাঁদের শিশুসন্তান রয়েছে, তাঁদের জন্য কর্মস্থলে ডে–কেয়ার সেন্টার বা শিশু দিবাযত্নকেন্দ্র খুবই প্রয়োজন। জন্মের পর প্রথম ছয় মাস শিশুরা শুধু মায়ের দুধ খায়। ছয় মাস থেকে দুই বছর বয়স পর্যন্ত অন্যান্য খাবারের পাশাপাশি শিশুকে বুকের দুধও দিতে হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা কর্মস্থলে ডে–কেয়ার সেন্টার থাকলে নারীরা সহজেই তাঁদের শিশুকে বুকের দুধ খাওয়াতে পারেন।

কিন্তু আমাদের দেশের বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানেই ডে–কেয়ার সেন্টার নেই। অথচ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে শুরু করে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, চিকিৎসা, শিক্ষকতাসহ বিভিন্ন পেশা ও উৎপাদনশীল খাতে বহু নারী কাজ করছেন। বাংলাদেশের শ্রম আইন অনুযায়ী, ৪০ জন বা তার বেশি নারী নিয়োজিত আছেন এ রকম প্রতিষ্ঠানে ছয় বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য শিশু দিবাযত্নকেন্দ্র থাকতে হবে। কিন্তু এ আইন মানছে খুব কম প্রতিষ্ঠান।

তাই শিশুসন্তানের দেখভালের জন্য নারীদের বাড়ির অন্যান্য সদস্যের ওপর নির্ভর করতে হয়। অনেক ক্ষেত্রে শুধু গৃহকর্মীর ওপর নির্ভর করতে হয়। অনেক সময় দেখা যায়, এসব গৃহকর্মী বিশ্বস্ত নন। তাঁরা শিশুর দেখাশোনা ঠিকমতো করেন না। তখন সন্তানদের জন্য দুশ্চিন্তায় কাজে মনোযোগ দিতে পারেন না কর্মজীবী মায়েরা। কাজের ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

সন্তানের দেখভালের জন্য অনেক শিক্ষিত ও যোগ্য নারী বাধ্য হয়ে চাকরি ছেড়ে দিচ্ছেন। একইভাবে শিক্ষার্থী মায়েরা ক্লাসের পড়ালেখায় মন দিতে পারেন না। তাঁদের পড়ালেখায় ব্যাঘাত ঘটে। তাই কর্মস্থলে ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ডে–কেয়ার সেন্টার থাকাটা খুব জরুরি। কর্মজীবী নারীর সংখ্যা বাড়াতে এবং নারীদের কর্মক্ষেত্রে ধরে রাখতে হলে কর্মস্থলে ডে–কেয়ার সেন্টার গড়ে তোলার কোনো বিকল্প নেই।

এখন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুসরণে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রতিষ্ঠানগুলোর উচিত ডে–কেয়ার সেন্টার গড়ে তোলা। সরকারকে এই
দিকটিতে নজরদারি বাড়াতে হবে এবং শ্রম আইনের বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।
Source: prothom Alo

69
Pharmacy / ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ
« on: July 24, 2018, 11:26:31 AM »
বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে হাসপাতালে ও চিকিৎসকদের কাছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা ভিড় করছেন। গত বছর চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিলেও এ বছর তেমনটা নেই বললেই চলে।

বিগত বছরগুলোর মতো এবারও গলাব্যথা বা ডায়রিয়ার মতো পরিচিত কিছু ভিন্নধর্মী লক্ষণ নিয়ে ডেঙ্গু জ্বর দেখা দিচ্ছে। লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে প্রথম দিন থেকে প্রচণ্ড জ্বর, প্রচণ্ড মাথাব্যথা, চোখের পেছনে ব্যথা, শরীরে ব্যথা, ত্বক লাল হয়ে যাওয়া এবং কিছু ক্ষেত্রে ত্বকে র‍্যাশ বা দানা দেখা দেওয়া। কারও কারও বমি হতে দেখা যাচ্ছে।

তবে মনে রাখা উচিত, এ সময়ের জ্বর মানেই কেবল ডেঙ্গু নয়। কাছাকাছি ধরনের লক্ষণ নিয়ে অন্যান্য জ্বরও দেখা দিচ্ছে। অন্যান্য ভাইরাস জ্বর ছাড়াও পানিবাহিত টাইফয়েড জ্বরও হচ্ছে। তাই জ্বর হলে লক্ষণ-উপসর্গ মিলিয়ে ও প্রয়োজনে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হয়েই চিকিৎসা নেওয়া ভালো।

এ সময় জ্বর এলেই ভয় পাবেন না। ফ্লু বা ডেঙ্গু—যেকোনো ভাইরাসজনিত রোগ আপনা থেকেই সেরে যাবে। জ্বর এলে পর্যাপ্ত পানি পান করুন, শরীর স্পঞ্জ করুন, বিশ্রাম নিন এবং মাথায় পানি দিন। জ্বর কমাতে প্যারাসিটামল সেবন করতে পারেন। আর কোনো ওষুধের দরকার নেই।

জ্বর প্রথম দিন থেকেই জটিল আকার মনে হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। নয়তো বাড়িতে তিন দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারেন। তিন দিনে জ্বর না কমলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন। নিজে দোকান থেকে কিনে কোনো অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ খাবেন না, হিতে বিপরীত হতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরে রক্তের অনুচক্রিকার মাত্রা বিপজ্জনক হারে কমে যেতে দেখা যাচ্ছে এবার। এটি ডেঙ্গু জ্বরের একটি জটিলতা। অনুচক্রিকা কমে গেলে দাঁত, ত্বকের নিচ, নাক ইত্যাদি স্থানে রক্তক্ষরণের ঝুঁকি বাড়ে। কখনো আরও মারাত্মক রক্তপাতও হতে পারে। কিন্তু ডেঙ্গু জ্বর হলেই বা অনুচক্রিকা কমে গেলেই রোগীকে রক্ত বা প্লাটিলেট দেওয়ার প্রয়োজন হয়—এমন ধারণার ভিত্তি নেই। ডেঙ্গু হলে হাসপাতালে ভর্তি করে শিরায় স্যালাইন দিতেই হবে—এ ধারণাও ভুল। রোগীর অবস্থা অনুযায়ী চিকিৎসক সিদ্ধান্ত নেবেন। একেকজনের জন্য চিকিৎসা পদ্ধতি ভিন্ন হতে পারে।

From:

অধ্যাপক খান আবুল কালাম আজাদ

অধ্যক্ষ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ, বিভাগীয় প্রধান, মেডিসিন বিভাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

70
বাজার থেকে ভালসারটন ওষুধ প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। আজ রোববার দুপুরে মন্ত্রণালয় সভাকক্ষে এ বিষয়ে এক সভা শেষে মন্ত্রী এ নির্দেশ দেন বলে মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

ভালসারটন উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ব্যবহার করা হয়। ভালসারটন ব্যবহারে ক্যানসার হয়—এমন প্রমাণ হাতে আসার পর পৃথিবীর বেশ কয়েকটি দেশ ওষুধটি নিষিদ্ধ করেছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভালসারটন ওষুধের কাঁচামাল যেন অন্য কোনো ওষুধে ব্যবহার করা না হয়, সে ব্যাপারে ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে সতর্ক থাকার কথা বলেছেন মোহাম্মদ নাসিম। ভালসারটন ওষুধ ব্যবহার না করার লক্ষ্যে জনসচেতনতা বাড়াতে একটি বিশেষজ্ঞ প্যানেলের মতামতসহ সচেতনতামূলক বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে প্রকাশের জন্যও তিনি ঔষধ প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের সচিব জি এম সালেহ উদ্দিন, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিচালক গোলাম কিবরিয়া, বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির মহাসচিব এস এম শফিউজ্জামান, সমিতির উপদেষ্টা আবদুল মুক্তাদির উপস্থিত ছিলেন।
Source: Prothom alo

71
Please follow the link to know how to determine friability of tablets

72
আধুনিক জীবনে অসুখের শেষ নেই। সে অসুখ সারাতে হাজারও ওষুধ। সারাদিনে মনে করে নিয়ম মেনে ওষুধ খাওয়ার চক্করের যেন শেষ নেই! তবে যদি রোগ প্রতিরোধের উপায় আরও বাড়ানো যায়, তা হলে অসুখ-বিসুখের হাত থেকে খানিক রেহাই পাওয়া সম্ভব।

আমাদের চারপাশেই কিন্তু রয়েছে এমন এক প্রাকৃতিক উপাদান যা আপনাকে রাখবে সুস্থ। জীবনের বেশির ভাগ নাছোড় অসুখের সঙ্গে লড়ে যাওয়ার শক্তি জোগাবে। হুইটগ্রাস বা গমের কচি চারার রস এমনই এক বস্তু।

ভরপুর গুণের এ গমের চারার রস বানানো খুব একটা কঠিন নয়। গমের কচি চারা জোগাড় করুন। চারাগুলো দুই ফালি করে নিন। ভালো করে ধুয়ে জুসারে পুরুন। বাড়তি কিছুই মেশাবেন না। এ রস ফ্রিজে জমিয়ে রাখতে পারেন। উপকার পেতে প্রতিদিন খালি পেটে পান করুন এ রস। আনন্দবাজার পত্রিকা।

মেডিসিন বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রাকৃতিক উপাদান থেকে পাওয়া নানা প্রতিরোধকে এমন কিছু উপাদান থাকে, যা আমাদের শরীরের জন্য বিশেষ উপকারী। গম চারার রস মানেই সতেজ ক্লোরোফিল। আর এটি সবুজ গাছ ছাড়া অন্য কিছুতেই পাওয়া সম্ভব নয়। নানা খনিজ পদার্থসমৃদ্ধ এ প্রাকৃতিক ঘাসে আছে ভিটামিন এ, সি, ই, বি কমপ্লেক্স ও কে।

এছাড়া প্রোটিন ও ১৭ ধরনের অ্যামাইনো এসিড রয়েছে এ চারায়। প্রতি ২৮ গ্রাম রসে রয়েছে ১ গ্রাম প্রোটিন। ত্বকে বিভিন্ন ধরনের সংক্রমণ, আলসার, কানের জ্বালাপোড়া, ত্বকের পুনর্গঠন ইত্যাদির চিকিৎসায় ক্লোরোফিল বেশ ইতিবাচক প্রভাব ফেলে।

এ রসের ৭০-৭৫ ভাগই হল বিশুদ্ধ ক্লোরোফিল। ক্লোরোফিলে রয়েছে অনেক উপকারী উৎসেচক। এগুলো কোষের সুপার অক্সাইড র‌্যাডিকেলগুলোকে ধ্বংস করতে পারে। ফলে বার্ধক্যজনিত ছাপ শরীরে সহজে বাসা বাঁধতে পারে না। ক্লোরোফিল প্রাকৃতিক অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়ালও। শরীরের ভেতরে ও বাইরে তা অপকারী ব্যাক্টেরিয়া নির্মূল করে।

ক্লোরোফিল তৈরি হয় আলোর মাধ্যমে। আলোর ভেতরের শক্তিও এর মাধ্যমে মানবদেহে প্রবেশ করতে পারে। গমের চারার ক্লোরোফিল সরাসরি মানবদেহে মিশে যায়। এখনও পর্যন্ত এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। শরীরে জমে থাকা নানা ওষুধের ক্ষতিকারক অবশিষ্টাংশও নির্মূল করতে পারে। এ চারাগমের ঘাসের রস হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুসের কার্যক্ষমতা বাড়ায়।

এটি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। তাই ডায়াবেটিসের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কিডনিকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে এটি। সাইনোসাইটিস চিকিৎসায় ক্লোরোফিল বেশ ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। হাড়ের সমস্যায় কাজ করে এ রস। এতে প্রচুর ম্যাগনেশিয়াম আছে। তাই কোষ্ঠকাঠিন্য তাড়াতে পারে গমের ঘাসের জুস।
Source: Jugantor

73
Anatomy & Physiology / Human Circulatory System
« on: July 21, 2018, 11:06:02 AM »
A short brief of human circulatory system.

74
Pharmacy / Re: Seafood during pregnancy
« on: July 21, 2018, 11:04:22 AM »
nice information

75
Pharmacology / coronary angiogram and angioplasty
« on: July 21, 2018, 10:44:39 AM »
please follow the link to understand the coronary angiogram. Hope it will enlighten you.

Pages: 1 ... 3 4 [5] 6 7 ... 9