Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - ashraful.diss

Pages: [1] 2 3 ... 10
1

যবানের হেফাযত বেহেশতের যামানত

বাকশক্তি আল্লাহ তাআলার বড় নিআমত ও মহা দান। বান্দার বহুবিধ কল্যাণ এতে নিহিত। বহুমুখী প্রয়োজন পূরণের লক্ষ্যে তিনি এ নিআমত বান্দাকে দান করেছেন। অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ দিয়ে এসব প্রয়োজন পূরণ করা সম্ভব নয়। যবানের নিআমত থেকে বঞ্চিত হলে অন্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ এর প্রতিনিধিত্ব করতে পারে না। কোনো কিছুই যবানের বিকল্প হতে পারে না।

মানুষের মনের ভাব, দুঃখ-কষ্ট, ব্যথা-বেদনা, আনন্দ-উল্লাস প্রকাশে যবান অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। বলতে গেলে যবান সমস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মুখপাত্র। বোবার মনের কত দুঃখ-কষ্ট, কত আনন্দ-বেদনা, কিন্তু কাউকে জানাতে পারে না, জীবনের প্রতিটি ধাপে যার বিরূপ প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। যে বাকশক্তি হারিয়েছে সে-ই উপলদ্ধি করতে পারে- যবান কত বড় নিআমত!

সাধারণত যার মুখে জড়তা আছে, স্বতঃস্ফূর্তভাবে কথা বলতে পারে না তার জীবনেই তো কত সমস্যা। কত কষ্ট পেতে হয় তাকে। কত জায়গায় লজ্জা পেতে হয়। অথচ আমরা নির্বিচারে যত্রতত্র যবানের অপব্যবহার করে চলেছি। বস্তুত এত বড় নিআমতের উপলদ্ধি আমাদের মাঝে না থাকার কারণ হল, বিনামূল্যে কোনো কষ্ট স্বীকার ছাড়াই এ নিআমত আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে দান করেছেন।

হায়! আমরা যদি একটু বুঝতাম, কত দামী এ নিআমত! রব্বে কারীমের কত বড় দান! একটু ভেবেছি কি- কীভাবে কথা বলছি? এত সুন্দর আওয়াজ কীভাবে বের হয়? কোথা থেকে এ ধ্বনিগুলো উচ্চারিত হয়? আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে কত বড় নিআমত দান করেছেন আর আমরা তাঁর নাফরমানিতে লিপ্ত। এ যবানের কত অপব্যবহার করছি হিসাবও নেই। কত পাপ এ যবান দিয়ে হচ্ছে, আমাদের অনুভূতিও নেই। একটু ভেবেছি কি, কথা বলার জন্য যদি মিনিট হিসাব করে বিল পরিশোধ করতে হত, তাহলে জীবনটা কত দুর্বিষহ হত।

আল্লাহ আমাদের এই নিআমত এমনিতেই দিয়ে দিয়েছেন। কথা বলতে কোনো কষ্টও পোহাতে হয় না। তাই অনেক বেশি শুকরিয়া আদায় করা প্রয়োজন। অথচ আমরা নির্বিচারে যবানের প্রতি জুলুম করে যাচ্ছি। নাফরমানির কাজে ব্যবহার করছি। এ যবান দিয়ে খালেকের বিরুদ্ধাচরণ করছি। এমনকি শিরকী-কুফরী কথাও যারা বলছে এই যবান ব্যবহার করেই বলছে। অনুভূতি-অনুশোচনাও নেই। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন-

إِنّ العَبْدَ لَيَتَكَلّمُ بِالكَلِمَةِ، مَا يَتَبَيّنُ فِيهَا، يَزِلّ بِهَا فِي النّارِ أَبْعَدَ مِمّا بَيْنَ المَشْرِقِ

অর্থাৎ বান্দা চিন্তা-ভাবনা ছাড়া এমন কথা বলে ফেলে, যার কারণে সে (পূর্ব-পশ্চিমের দূরত্ব পরিমাণ) জাহান্নামের অতলে নিক্ষিপ্ত হবে। (সহীহ বুখারী, হাদীস ৬৪৭৭)

বহু ক্ষেত্রে যবানের অপব্যবহার গভীর সম্পর্ককেও তছনছ করে দেয়। নিবিড় বন্ধুত্বের মাঝেও ফাটল ধরায়। দীর্ঘদিনের আত্মীয়তাকে মুহূর্তে শেষ করে দেয়। হৃদয়কে জর্জরিত করে। অন্তরকে ক্ষত বিক্ষত করে, যা কখনও মানুষ ভুলতে পারে না। কারণ, যবানের আঘাতের ঘা শুকায় না। কবি বলেছেন-

جراحات السنان لها التئام + ولا يلتام ما جرح اللسان

বর্শার ফলার আঘাতের উপশম হয়। তবে যবানের আঘাতের কোনো উপশম নেই।

যবানের সঠিক ব্যবহার যেমন প্রভূত কল্যাণ বয়ে আনে তেমনি এর অপব্যবহার ধ্বংস ডেকে আনে। এজন্যে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উম্মতের যবানের ব্যবহার নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন হতেন।

عَنْ سُفْيَانَ بْنِ عَبْدِ اللهِ الثّقَفِيِّ، قَالَ: قُلْتُ: يَا رَسُولَ اللهِ، مَا أَخْوَفُ مَا تَخَافُ عَلَيّ؟ قَالَ: فَأَخَذَ بِلِسَانِ نَفْسِهِ، ثُمّ قَالَ: " هَذَا ".

হযরত সুফিয়ান ইবনে আব্দুল্লাহ আসসাকাফী রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বললাম, আমার কোন বিষয়ে আপনি সবচেয়ে বেশি আশংকা করেন। তখন তিনি নিজ জিহ্বা ধরলেন এরপর বললেন, এটা। (মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ১৫৪১৯)

যবান খুব দামী নিআমত। সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মাঝে যবানের বিশেষ মর্যাদা রয়েছে। পরস্পরিক কথাবার্তা, লেনদেন, আলাপ-আলোচনা, সব কিছুতেই মুখের ভূমিকা অপরিসীম। এটা সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের প্রতিনিধি ও মুখপাত্র।

যবানের যথাযথ ব্যবহারের দ্বারা দুনিয়া-আখেরাতে মানুষ যেভাবে উপকৃত হতে পারে তদ্রূপ এর অপব্যবহার দ্বারা ডেকে আনতে পারে ধ্বংস। এই যবান যেমন সত্তর বছরের বৃদ্ধকে ঈমানের স্বীকারোক্তি দ্বারা জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি দেয় তেমনি কুফরের উচ্চারণ দ্বারা তা মানুষকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করে।

যার বাকশক্তি মজবুত এবং যে সুন্দর উপস্থাপনে পারঙ্গম যবানের অপব্যবহারে তার ক্ষতির আশংকাও তত বেশি। তাই তো রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর উম্মতকে সতর্ক করে দিয়েছেন।

উম্মে সালামা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন, একবার নবীজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘরের দরজায় কিছু মানুষকে বিবাদে লিপ্ত দেখে বললেন-

إِنّمَا أَنَا بَشَرٌ، وَإِنّهُ يَأْتِينِي الْخَصْمُ، فَلَعَلّ بَعْضَهُمْ أَنْ يَكُونَ أَبْلَغَ مِنْ بَعْضٍ، فَأَحْسِبَ أَنّهُ صَادِقٌ، فَأَقْضِيَ لَهُ بِذَلِكَ، فَمَنْ قَضَيْتُ لَهُ بِحَقِّ مُسْلِمٍ فَإِنّمَا هِيَ قِطْعَةٌ مِنَ النّارِ فَلْيَأْخُذْهَا أَوْ لِيَتْرُكْهَا.

আমিও মানুষ। আমার কাছে (বিচার নিয়ে) বাদী-বিবাদী আসে। কখনো এমন হয় যে, তোমাদের একজনের চেয়ে অপরজন দলীল উপস্থাপনে বেশি পারঙ্গম। ফলে (দলীল উপস্থাপন থেকে) আমি কাউকে সত্যবাদী মনে করি আর (সেই ভিত্তিতে) কারো পক্ষে ফয়সালা করি। কখনো যদি এমন ঘটে- আমি অপর মুসলিমের হক কারো জন্য ফয়সালা করে দিলাম তাহলে (শুনে রাখ) তা হবে জাহান্নামের আগুনের একটি টুকরা। (এখন তার ইচ্ছা, চাইলে) সে তা গ্রহণ করুক অথবা তা থেকে নিজেকে রক্ষা করুক। (সহীহ বুখারী, হাদীস ৭১৮১)

প্রাঞ্জল ও স্পষ্ট ভাষা আল্লাহর মহা দান। তেমনি এর সঠিক ও যথার্থ ব্যবহার অত্যাবশ্যক। নতুবা জাহান্নামের আগুনই হবে ঠিকানা। সাধারণত আমাদের কথা চার ধরনের হয়।

১. পুরো কথাই কল্যাণকর।
২. পুরো কথাই ক্ষতিকর।
৩. যে কথাতে কল্যাণ-অকল্যাণ মিশ্রিত থাকে।
৪. যে কথাতে দুনিয়া-আখেরাতের লাভ-ক্ষতি কিছুই নেই। অর্থাৎ অনর্থক কথা।

কল্যাণকর কথার ক্ষেত্রে শরয়ী বিধান হল পুরোপুরি জেনেশুনে কথা বলা। অনুমান করে কথাবার্তা বলবে না। আল্লাহ তাআলা বলেন-

وَ لَا تَقْفُ مَا لَیْسَ لَكَ بِهٖ عِلْمٌ  اِنَّ السَّمْعَ وَ الْبَصَرَ وَ الْفُؤَادَ كُلُّ اُولٰٓىِٕكَ كَانَ عَنْهُ مَسْـُٔوْلًا

যে বিষয়ে তোমার জ্ঞান নেই তার পিছে পড়ো না। জেনে রেখো, কান, চোখ হৃদয়- এর প্রতিটি সম্পর্কে  (তোমাদেরকে) জিজ্ঞেস করা হবে। সূরা বনী ইসরাঈল (১৭) : ৩৬

আমাদের অনেকের মাঝেই একটি প্রবণতা খুব লক্ষ করা যায়। আমরা যা শুনি তাই বিশ্বাস করি এবং প্রচার করতে শুরু করি। যাচাই বাছাইয়ের প্রয়োজন বোধ করি না। কোনো তথ্য বা সংবাদ বর্ণনা করার আগে যাচাই-বাছাই করা কর্তব্য। অন্যথায় মিথ্যা হওয়ার প্রবল আশংকা থাকে। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন-

كَفَى بِالْمَرْءِ كَذِبًا أَنْ يُحَدِّثَ بِكُلِّ مَا سَمِعَ

ব্যক্তি যা শুনে তা বর্ণনা করা মিথ্যাবাদী হওয়ার জন্য যথেষ্ট। (সহীহ মুসলিম, হাদীস ৪)

যাচাই-বাছাই ছাড়া কথা বলতে থাকা কিংবা সে অনুযায়ী কর্মনীতি নির্ধারণ করতে থাকা চরম বোকামী। পরিণামে তা আক্ষেপের কারণ হয় এবং ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনে। মহান আল্লাহ বলেন-

یٰۤاَیُّهَا الَّذِیْنَ اٰمَنُوْۤا اِنْ جَآءَكُمْ فَاسِقٌۢ بِنَبَاٍ فَتَبَیَّنُوْۤا اَنْ تُصِیْبُوْا قَوْمًۢا بِجَهَالَةٍ فَتُصْبِحُوْا عَلٰی مَا فَعَلْتُمْ نٰدِمِیْنَ

হে মুমিনগণ! কোনো ফাসেক যদি তোমাদের কাছে কোনো সংবাদ নিয়ে আসে, তবে ভালোভাবে যাচাই করে দেখবে, যাতে তোমরা অজ্ঞতাবশত কোনো সম্প্রদায়ের ক্ষতি করে না বস। ফলে নিজেদের কৃতকর্মের কারণে তোমাদেরকে অনুতপ্ত হতে হয়। -সূরা হুজুরাত (৪৯) : ৬

যে কথায় কল্যাণ-অকল্যাণ উভয়টাই রয়েছে, বিশেষ প্রয়োজনে তা বলা যাবে। যেমন, বললে কারো গীবত হয়, না বললে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হয়- এমন কথা।

ক্ষতিকর ও অনর্থক কথা থেকে বেঁচে থাকা আবশ্যক। মুমিন তো ক্ষতিকর কথা বলতেই পারে না। এসব বলে মুমিন কেন জাহান্নামে যাবে? মুমিন তো অনর্থক কথা থেকেও বেঁচে থাকে। এজন্যে আল্লাহ তাআলা মুমিনদের গুণ বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন-

وَ الَّذِیْنَ هُمْ عَنِ اللَّغْوِ مُعْرِضُوْنَ

যারা অহেতুক বিষয় থেকে বিরত থাকে। -সূরা মুমিনূন (২৩) : ৩

বিজ্ঞজনের উক্তি-

في اللسان آفتان عظيمتان، إن خلص من إحداهما لم يخلص من الأخرى، آفة الكلام وآفة السكوت

‘যবানের দুটি বিপদ। কথার বিপদ ও চুপ থাকার বিপদ! একটি থেকে মুক্তি পেলেও অপরটি থেকে মুক্তি পাওয়া কঠিন।’

কখনো একটি আরেকটির চেয়ে বড় বিপদ হয়ে সামনে আসে। সত্য থেকে যে চুপ থাকে সেও তো অপরাধী। আর যে বাতিল কথা বলে সে আল্লাহর অবাধ্য, শয়তানের মুখপাত্র।

চলবে..............

2

ইনসাফ ভিত্তিক কর্মবণ্টন ও শরীয়ত অনুযায়ী আমলের গুরুত্ব

বর্তমান যামানায় প্রায় শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানই কর্মীদের এবং লিডারদের মাঝে সম্পর্কের ঘাটতি, ঈর্ষাকাতরতা এবং অবিশ্বাসের পরিবেশ লক্ষ্য করা যায়। এর একটি কারণ যেমন, পৃথিবীতে আল্লাহর ভয় কমে যাচ্ছে। ঠিক তেমনিভাবে এর একটি বড় কারণ, পরামর্শের মাধ্যমে কার্য বণ্টন এবং কর্মপন্থা নির্ধারণ না করা বলে আমি মনে করি।

রাসূল (সা.)এর একটি অভ্যাস ছিল যে, সাহাবায়ে কেরামের সাথে পরামর্শ করে প্রত্যেকের অবস্থা ও সক্ষমতা অনুযায়ী কাজ বণ্টন করতেন এবং নিজের যিম্মায়ও কিছু কাজ নিতেন।

প্রসিদ্ধ আছে যে, এক সফরে রাসূল (সা.) লাকড়ি কুড়ানোর কাজ নিজের যিম্মায় নিলেন। পরস্পর পরামর্শের মাধ্যমে কাজ বণ্টন করার মাঝে অনেক উপকারিতা রয়েছে। এর দ্বারা কাজ সহজ এবং দ্রুত হয়। সাথিরা সন্তুষ্ট মনে কাজ করে। প্রত্যেকেই একে অপরের সাহায্যকারী হয়। অবিশ্বাস এবং মতবিরোধ থেকে সকলেই হিফাজতে থাকে। কাজের মাঝে বরকত হয়। কুর’আন ও হাদীসে এ বিষয়ের গুরুত্ব এবং তার উত্তম দৃষ্টান্ত আমাদের সামনে বিদ্যমান।

সংঘাতপূর্ণ মানব সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে হলে মহান আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর হাবীব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রদর্শিত সাহাবায়ে কেরামের অনুসৃত পথ ও মত অনুসরণ করতে হবে। এক আল্লাহর বিশ্বাস, তিনি জগতের সৃষ্টিকর্তা ও ইবাদতের মালিক এ কথা মেনে চলতে হবে। ইরশাদ হচ্ছে-‘আল্লাহ কি বিচারকদের সর্বোচ্চ বিচারক নয়?’ বিচার দিনের মালিক মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন পৃথিবীতে মানুষের মাঝে বিচার ফয়সালার দায়িত্ব দিয়ে কিতাব সহকারে হযরত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে প্রেরণ করেছেন। ইরশাদ হচ্ছে-‘আমি আপনাকে কিতাব সহকারে প্রেরণ করেছি এ জন্য যে, আপনি মানুষের মাঝে সত্যিকার বিচার করবেন, আল্লাহ যেভাবে দেখিয়ে দিয়েছেন ঠিক সেভাবে। আর আপনি খিয়ানতকারীদের পক্ষে বাদানুবাদ করতে যাবেন না। সূরা নিসা, আয়াত: ১০৫

পৃথিবীর সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বিচারক রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দুষ্টের দমন ও শিষ্টের লালনে সঠিক পন্থা অবলম্বন করে যে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন, তার নজির পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কীভাবে ইনসাফ ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে হয়,তা হাতে কলমে শিখিয়েছেন । তিনি নিজের কারণে কখনো কাউকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাননি। নিজের কারণে কারো থেকে কখনো প্রতিশোধ নেননি। কেবল জনগণের জন্যই অপরাধীর উপর দন্ড কার্যকর করেছেন। জয়নাব বিনতে হারিস নামক খাইবারের ইহুদী মহিলা নবীজিকে হত্যা করার মানসে ছাগল ভুনা করে বিষ মিশ্রিত করে তাঁর নিকট হাদিয়া প্রেরণ করেছিল। সাথে সাথে এ বিষের ক্রিয়া নূরনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও সহচররা টের পেলেন। সাহাবীরা তরবারি উঁচিয়ে মহিলার দিকে ধেয়ে আসলে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঐ মহিলাকে রক্ষা করেন। তাকে কোন শাস্তি দিলেন না। পরবর্তীতে যখন বিশিষ্ট সাহাবী বিশর ইবনে বারা রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু বিষক্রিয়ায় ইন্তেকাল করলেন, তখন এ হত্যাকান্ডের শাস্তি সরূপ নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সে মহিলাকে মৃত্যুদন্ড দিয়েছিলেন। সূরা আলে ইমরান,আয়াত: ১০৩

আমরা যদি প্রিয় নবীর হাতে গড়া ইসলামী প্রজাতন্ত্র মদীনাতুর রাসূলের দিকে অবলোকন করি তবে বলা যায় শান্তি প্রতিষ্ঠার পূর্বশর্ত- জাতি, ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান। সমাজে ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠা করতে হলে আমাদের কিছু করণীয় রয়েছে। যথা-

১. ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া: ভ্রাতৃত্ব হচ্ছে ফুল ও পল্লবে শোভিত এক বরকতপূর্ণ বৃক্ষ, নানাভাবে নিরবধি যা ফলদায়ক। ভ্রাতৃত্বের মৌল ভিত্তি হচ্ছে আল্লাহর উদ্দেশ্যে ভালোবাসা। ইরশাদ হচ্ছেঃ “তোমরা সকলে আল্লাহর রজ্জু দৃঢ়ভাবে ধরো এবং পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ো না। তোমাদের প্রতি আল্লাহর অনুগ্রহ স্মরণ করো : তোমরা ছিলে পরস্পর শত্রু এবং তিনি তোমাদের হৃদয়ে প্রীতি সঞ্চার করেন, ফলে তার অনুগ্রহে তোমরা পরস্পর ভাই হয়ে গেলে।” এ প্রসঙ্গে রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-সে সত্তার শপথ, যার হাতে আমার প্রাণ! তোমাদের কেউ ততক্ষণ মোমিন হতে পারবে না, যতক্ষণ না সে যে কল্যাণ নিজের জন্য পছন্দ করে, তার অপর ভাইয়ের জন্যও তা পছন্দ করে। সহিহ বুখারী; সহিহ মুসলিম

২. প্রতিপক্ষের প্রতি সম্মান ও দয়া প্রদর্শন করা: বিতর্ক করতে হবে সত্য প্রকাশ ও মানুষের প্রতি দয়া-মমতার জন্য। প্রতিপক্ষকে হীন করার উদ্দেশ্যে কিংবা মুর্খ বলার জন্য নয়। মহান আল্লাহ তা’আলা ইরশাদ করেন, ‘‘আর রাহমানের বান্দা তারাই যারা জমিনে নম্রভাবে চলাফেরা করে এবং অজ্ঞ লোকেরা যখন তাদের সম্বোধন করে তখন বলে ‘সালাম।’’ তাই নবীজিকে হত্যার জন্য হাজার বার যারা চেষ্টা করেছিল বরাবরই তাদের সবাইকে তিনি ক্ষমা করে দিয়ে প্রতিপক্ষের সাথে আচরণের বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

৩. কারো ওপর জুলুম-অবিচার না করা: যার যা প্রাপ্য তাকে তা না দেয়া হলো জুলুম। এটা ব্যক্তির সম্পদ আত্মসাৎ, শারীরিক আক্রমণ বা সম্মানহানির মাধ্যমেও হতে পারে, যা ইসলামের দৃষ্টিতে মারাত্মক অন্যায় বলে বিবেচিত। আল্লাহর হক আদায় না করলে আল্লাহ ক্ষমা করলেও বান্দার হক বিনষ্টকারীকে আল্লাহ কখনও ক্ষমা করবেন না যতক্ষণ না যার ওপর জুলুম করা হয়েছে, সে ক্ষমা করে দেয়। হাদীসে কুদসীতে আল্লাহ তা’আলা ইরশাদ করেন, “হে আমার বান্দা! আমি নিজের ওপর জুলুম হারাম করেছি এবং তোমাদের জন্যও একে হারাম করেছি। অতএব তোমরা একে অপরের ওপর জুলুম করো না।’’ সূরা ফুরকান,আয়াত:৬৩

৪.সৎ কাজের আদেশ করা ও অসৎ কাজের নিষেধ করা : এটা সমাজ সংস্কার ও সংশোধনের অনন্য মাধ্যম। এর মাধ্যমে সত্যের জয় হয় এবং মিথ্যা ও বাতিল পরাভূত হয়। যে ব্যাক্তি আন্তরিকতা ও সততার সাথে এ দায়িত্ব পালন করে তার জন্য রয়েছে মহা পুরস্কার ও মর্যাদাপূর্ণ পারিতোষিক। ইরশাদ হচ্ছে, “আর তোমাদের মধ্যে এমন একটা দল থাকা উচিত, যারা সৎকাজের প্রতি আহ্বান করবে, নির্দেশ করবে ভালো কাজের এবং বারণ করবে অন্যায় কাজ থেকে। আর তারাই হলো সফলকাম।” সূরা আলে ইমরান, আয়াত: ১০৪

৫. ইনসাফ করা : ইসলামের পরিভাষায় ইনসাফ হচ্ছে কোনো বস্তু তার হকদারদের মধ্যে এমনভাবে বণ্টন করে দেয়া যাতে কারও ভাগে বিন্দুমাত্র কম বেশি না হয়। বসুন্ধরার বুকে ইনসাফ ও ন্যায়বিচার কায়েম নিয়ে আসে নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা ও শান্তির ফল্গুধারা। ব্যক্তিগত ও সামষ্টিক জিন্দেগীর সকল পর্যায়ে ইনসাফ ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠাকে ইসলাম সমধিক গুরুত্ব প্রদান করেছে। এমনকি মুসলমানদের সাথে কাফিরদের লেনদেন ও সম্পর্কের ক্ষেত্রেও ইনসাফের নীতিতে অবিচল থাকতে হবে। ইরশাদ হচ্ছে, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহর জন্য ন্যায়ের সাথে সাক্ষ্যদানকারী হিসেবে সদা দন্ডায়মান হও। কোনো সম্প্রদায়ের প্রতি শত্রু তা যেন তোমাদেরকে সুবিচার বর্জন করতে কোনোভাবেই প্ররোচিত না করে। তোমরা ইনসাফ কর, তা তাকওয়ার নিকটতর এবং আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় তোমরা যা কর, আল্লাহ সে বিষয়ে সবিশেষ অবহিত।” সূরা মায়েদা, আয়াত: ৮

৬. দ্বীনী শিক্ষা অর্জন ও প্রচার-প্রসার : দুনিয়ার নিযাম ও ব্যবস্থাপনা ঠিক রাখার জন্য যেমন জাগতিক শিক্ষার প্রয়োজন তেমনি দ্বীনের হিফাজতের জন্য এবং দুনিয়ার সকল কাজ আল্লাহর সন্তুষ্টি মোতাবেক করার জন্য দ্বীনী শিক্ষার প্রয়োজন। কুরআন-সুন্নাহর চর্চা ও অনুসরণের অভাব হলে সমাজের সকল অঙ্গনে দুর্নীতি ও অনাচার দেখা দেয়। দেখা দেয় অশান্তি। শিক্ষিত মানুষ পথভ্রষ্ট হয়। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে সমাজ যতই উন্নতি লাভ করুক ঈমান ও খোদাভীতি না থাকলে তা মানুষের ক্ষতি ও অকল্যাণে ব্যবহৃত হয়। মানুষের সকল আবিষ্কারকে অর্থপূর্ণ ও কল্যাণমুখী করার জন্যই অপরিহার্য প্রয়োজন ইলমে ওহীর চর্চা। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘‘আল্লাহ তা’আলা যাকে প্রভূত কল্যাণ দিতে চান তাকে দ্বীনের প্রজ্ঞা দান করেন।’’ সহীহ বুখারী, ১/৬

৭. আল্লাহর জন্য বন্ধুত্ব এবং আল্লাহর জন্য শত্রুতা পোষণ করা : শত্রু-মিত্রের বিচার না করে সব মানুষ যদি সঠিক পথের অনুসারী হতো তবে হক্ব-বাতিল, ঈমান-কুফর, আল্লাহর বন্ধু এবং শয়তানের বন্ধুর মাঝে কোনো পার্থক্য থাকতো না। তাই বন্ধু নির্বাচন ও শত্রু তা পোষণ আল্লাহর জন্য হওয়া উচিত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, “ঈমানের অধিকতর নিরাপদ বন্ধন হলো আল্লাহর জন্য বন্ধুত্ব এবং আল্লাহর জন্য শত্রু তা। সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস : ৪৫৯৯

৮. জবাবদিহিতার মানসিকতা থাকা :মানুষকে নিজ নিজ দায়িত্ব ও কর্তব্য অত্যন্ত সুষ্ঠু ও স্বচ্ছতার সঙ্গে যথাযথভাবে পালন করতে হবে। বিভিন্ন কাজকর্মের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের প্রকাশের উপযুক্ত তত্ত্ব-তথ্য, আয়-ব্যয়, হিসাব-নিকাশ ও লেনদেনকে সুস্পষ্টভাবে জানার জন্য উন্মুুক্ত করাই হলো স্বচ্ছতা। ইহকালীন ও পারলৌকিক উভয় জগতে জবাবদিহিতা রয়েছে। ইরশাদ হচ্ছেঃ ‘অন্তত যে ব্যক্তি স্বীয় প্রতিপালকের সামনে দন্ডায়মান হওয়াকে (জবাবদিহি) ভয় করে এবং প্রবৃত্তি থেকে নিজেকে বিরত রাখে, জান্নাতই হবে তার আবাস।’’ সূরা নাজিয়াত, আয়াত: ৪০

এই জন্য আমাদেরও পরামর্শের গুরুত্ব বুঝে এর উপর আমল করা উচিত। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সাহায্য করুন এবং সমস্ত অকল্যাণ থেকে হিফজত করুন। আমিন!


3

শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালনে কর্তব্যবোধ ও ইখলাস থাকা গুরুত্বপূর্ণ


দায়িত্ব পালনের গুরুত্ব: আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া আদায় করা উচিত যে, তিনি আমাদেরকে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানের খিদমত করার সুযোগ দিয়েছেন। আমাদের নিজেদের দায়িত্বের প্রতি চিন্তা করা উচিত। গুরুত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করলে কাজের মাঝে বরকত আসে। একটা হচ্ছে চাকুরীর জন্য ডিউটি পালন, অপরটি হচ্ছে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করা। এই দু’টির মাঝে পার্থক্য আছে। চাকুরীতে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট রুল মেনে কাজ করা হয়। কিন্তু যখন আপনি এটিকে দায়িত্ব হিসেবে নেবেন, তখন সেটা পালনের ক্ষেত্রে আপনার চেষ্ঠা থাকবে সর্বাত্মক।

নির্ধারিত সময়ের কাজ সময়ে না করলে বা সিদ্ধান্ত নিতে ভুল করলে, পরে আর সেই কাজের কোন উদ্দেশ্য থাকে না। আর ‘দায়িত্ব’ সময় দেখে না। কাজের চিন্তা করতে থাকে। যাদের দায়িত্ব পালন করার অনুভূতি থাকে, তারা সর্বদা চেষ্ঠা চালিয়ে যেতে থাকে। তারা অযুহাত দেয় না। তারা সর্বদা তাদের অন্তরকে কাজের মাঝে লাগিয়ে রাখেন।

প্রতিষ্ঠানের কাজ দুনিয়াবী উদ্দেশ্যে না হওয়ার গুরুত্ব: শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানসমূহের (শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের দ্বীনি জযবার অবনতি, প্রতিটি কাজে জাগতিক লাভের চিন্তা) অবস্থা দেখে এমন মনে হয় যে, এক যামানা আসবে যে, কোন মানুষকে সালাম দিলেও বলবে টাকা দাও তবে উত্তর দেব। অন্যথায় উত্তর দেব না। (উদ্দেশ্য এই যে, প্রত্যেক বিষয়ে বিনিময়ের প্রতি মানুষের মনোযোগ থাকবে। যা জ্ঞান ও ইলমের শান নয়। এই উদ্দেশ্যও হতে পারে যে, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান থেকে সালাম এবং পরস্পর মুহাব্বতের চর্চা হারিয়ে যাবে। তাই এই সমস্ত সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য সুদূরপ্রসারী চিন্তা থাকা উচিত। বাকীটা মহান সৃষ্টিকর্তা ভালো জানেন)।

প্রতিষ্ঠানের স্বার্থকে প্রাধান্য দেয়ার গুরুত্ব: প্রতিষ্ঠানের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রতিটি কর্মীর উচিত, প্রতিষ্ঠানের স্বার্থকে নিজের স্বার্থের উপর প্রাধান্য দেয়া। নিজের সত্ত্বাকে দেখবে না। নিজের সত্ত্বার কী ভরসা আছে? আজ আছে তো কাল নেই। শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান তো একটি স্থায়ী প্রতিষ্ঠান, যা সর্বদা দায়েমী থাকবে। প্রতিষ্ঠানের স্বার্থ অনুযায়ী কাজ করবে তো শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান উন্নতি হবে এবং প্রতিষ্ঠানের উত্তর উত্তর সাফলু আসবে। সুনাম হবে।

ইখলাসের গুরুত্ব: আমাদের সকলেরই প্রতিষ্ঠানের জন্যও কিছু কাজ করা উচিত। নিজের জন্য ও দুনিয়ার জন্যই সব কাজ না করা চাই। ইখলাস বিহীন কোনো কিছুই আসমানি দরবারে কবুলযোগ্য নয় বরং কখনো এমন আমল বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। পার্থিব মোহ ও সমাজের দৃষ্টি আকর্ষণের যাবতীয় লোভ থেকে মুক্ত হয়ে একমাত্র আল্লাহ পাকের জন্য সমর্পিত আত্মার সামান্য আমলও ইখলাসের কারণে অনেক বেশি মূল্যবান।

চারিদিকে সৌজন্যের ছড়াছড়ির এমন অস্থির সময়ে এমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টির প্রতি সাধারণ উদাসীনতা আমাদের সবার জন্য বড়ই বেমানান। “সারা জীবন তো অভিজ্ঞতা, ধোকা-বাজী ও চাপাবাজী করেই পেট পুষলাম। হায় আফসোস!” আল্লাহ আমাদের এসব কাজকর্ম থেকে হেফাজত করুন।

শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষাবর্ষের শুরুতে করণীয়: বছরের শুরুতেই সকলে একত্রে বসে হিসাব-নিকাশ করে নেবে যে, গত বছর আমাদের কী কী ভুল-ত্রুটি হয়েছে, যেগুলোর প্রতি আমরা লক্ষ্য রাখতে পারিনি। সে ভুলগুলোর প্রতি দৃষ্টি দিয়ে পরস্পরে আলোচনার মাধ্যমে সামনে নিয়ে আসা। এবং বছরের শুরুতেই সেগুলোকে পরিশূদ্ধ করার চেষ্টা করা। ইন্শাআল্লাহ্! প্রতিষ্ঠানের নেযাম ঠিক হয়ে যাবে।

4

শিক্ষনণীয় গল্প

এক স্বর্ণকারের মৃত্যুর পর তার পরিবারটা বেশ সংকটে পড়ে গেলো, খাদ্য-বস্ত্রে দেখা দিল চরম অভাব!

স্বর্ণকারের বিধবা স্ত্রী তার বড় ছেলেকে একটা হীরের হার দিয়ে বললো--এটা তোমার কাকার দোকানে নিয়ে যাও সে যেন এটা বেচে কিছু টাকার ব্যবস্থা করে দেয়!

ছেলেটা হারটি নিয়ে কাকার কাছে গেল! কাকা হারটা ভালো করে পরীক্ষা করে বললো- বেটা, তোমার মাকে গিয়ে বলবে যে এখন বাজার খুবই মন্দা, কয়েকদিন পর বিক্রি করলে ভাল দাম পাওয়া যাবে! কাকা কিছু টাকা ছেলেটিকে দিয়ে বললেন--আপাতত এটা নিয়ে যাও আর কাল থেকে তুমি প্রতিদিন দোকানে আসবে আমি কোন ১দিন ভাল খদ্দোর পেলেই যেন তুমি দৌড়ে হার নিয়ে আসতে পার তাই সারাদিন থাকবে!

পরের দিন থেকে ছেলেটা রোজ দোকানে যেতে লাগলো! সময়ের সাথে সাথে সেখানে সোনা-রুপা-হীরে কাজ শিখতে আরম্ভ করলো!

ভাল শিক্ষার ফলে অল্প দিনেই খুব নামি জহুরত বনে গেল! দূর দূরান্ত থেকে লোক তার কাছে সোনাদানা বানাতে ও পরীক্ষা করাতে আসত। খুবই প্রসংশীত হচ্ছিল তার কাজ!
একদিন ছেলেটির কাকা বললো--তোমার মাকে গিয়ে বলবে যে এখন বাজারের অবস্থা বেশ ভালো, তাই সেই হারটা যেন তোমার হাতে দিয়ে দেন! এখন এটা বিক্রি করলে ভালো দাম পাওয়া যাবে!

ছেলেটি ঘরে গিয়ে মায়ের কাছ থেকে হারটি নিয়ে পরীক্ষা করে দেখলো যে এটা একটা নকল হীরের হার! তাই সে হারটা আর কাকার কাছে না নিয়ে বাড়িতেই. রেখে দিলো!
কাকা জিজ্ঞেস করলো-- হারটি এনেছো ?ছেলেটি বললো-- না কাকা পরীক্ষা করে দেখলাম এটা একটা নকল হার!

তখন কাকা বললো- তুমি যেদিন আমার কাছে হারটি প্রথম নিয়ে এসেছিলে সেদিন আমি দেখেই বুঝে নিয়েছিলাম যে এটা নকল, কিন্তু তখন যদি আমি তোমাকে এই কথাটা বলে দিতাম, তাহলে তোমরা হয়তো ভাবতে যে আজ আমাদের মন্দা সময় বলেই কাকা আমাদের আসল জিনিষকে নকল বলছে!

আজ যখন এ ব্যাপারে তোমার পুরো জ্ঞান হয়ে গেছে, তখন তুমি নিজেই বলছো এটা নকল হার!

এই দুনিয়াতে প্রকৃত জ্ঞান ছাড়া তুমি যা কিছু দেখছো যা কিছু ভাবছো সবটাই এই হারের মতই নকল মিথ্যে!

জ্ঞান ছাড়া কোন জিনিসের বিচার সম্ভব নয়! আর এই ভ্রমের শিকার হয়েই অনেক সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়! তোমাদের সাথে আমার সেই সম্পর্কটা নষ্ট হোক আমি তা চাইনি!
-সংগ্রহিত পোস্ট!

5

সব কাজের প্রতিদান নিয়তের ওপর নির্ভরশীল


ইখলাস ও নিয়তের গুরুত্ব ইসলামে অপরিহার্য। নিয়ত ছাড়া কোনো আমলই মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালার কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

বিশুদ্ধ নিয়ত ইখলাস সম্পর্কে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লামের হাদীসে সতর্ক করা হয়েছে। হাদীসের পাতা থেকে ইখলাসের কতোগুলো হাদীস তুলে ধরা হলো।

সবকাজে ইখলাস ও নিয়তের পরিশুদ্ধতা

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

عمر بن الخطاب رضي الله عنه على المنبر قال سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول : ( إنما الأعمال بالنيات وإنما لكل امرىء ما نوى فمن كانت هجرته إلى دنيا يصيبها أو إلى امرأة ينكحها فهجرته إلى ما هاجر إليه) رواه البخاري والمسلم
 
অর্থ : ‘নিশ্চয় সমস্ত আমলের ফলাফল নিয়তের ওপর নির্ভরশীল। সুতরাং প্রত্যেক মানুষ (পরকালে) তাই পাবে যা সে নিয়ত করবে। যে ব্যক্তি আল্লাহ এবং তার রাসূলের উদ্দেশ্যে হিজরত করে, তার হিরজত আল্লাহ এবং তার রাসূলের উদ্দেশেই হবে। আর যে ব্যক্তি দুনিয়া হাসিলের কিংবা কোনো নারীকে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে হিজরত করে, তার হিজরত সেই উদ্দেশ্যেই গণ্য হবে যে উদ্দেশ্যে সে হিজরত করেছে।’ (বুখারি হাদিস নং ৫২)

এই হাদিসের সঙ্গে একটি ঘটনাও উল্লেখ করা হয় যে, যখন মুসলমানরা মক্কার কাফের সম্প্রদায়ের দেওয়া জুলুম নির্যাতন আর কষ্ট সহ্য করতে পারছিলো না, তখন মহান আল্লাহ তায়ালার হুকুমে হিজরত করে। সবার উদ্দেশ্য ছিল মদীনায় সহজভাবে মহান আল্লাহ ও তার রাসূল (সা.) আনুগত্য করা যাবে তাই হিজরত করে মদীনায় গমন করেন। কিন্তু তাদের মাঝে একজন লোক এই কারণে হিজরত করে যে, হিজরতকারীদের মাঝে একজন মহিলা ছিল ওই মহিলাকে বিয়ে করার জন্য সকলের সঙ্গে হিজরত করে। এই কথা রাসূল (সা.) জানার পর তিনি বলেন- যে আল্লাহ ও তার রাসূলের উদ্দেশ্যে হিজরত করেছে তার হিজরত সেই হিসাবেই গন্য হবে, অর্থাৎ তার উত্তম বিনিময় পাবে। আর যে দুনিয়া লাভ বা কোনো নারীকে বিয়ে করা হিজরত করেছে, তার হিজরতও সেই ভাবেই গ্রহণ করা হবে; পরকালে তার কোনো উত্তম বিনিময় থাকবেনা।

ইখলাস ব্যতীত কোনো কিছুই কবুল হয় না

হজরত আবু উমামা রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন- 

عن أبي أمامة رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : إن الله لا يقبل من العمل إلا ما كان له خالصا وابتغي به وجهه، رواه النسائي

অর্থ : ‘আল্লাহ তায়ালা সমস্ত আমলের মধ্যে শুধু সেই আমলটুকুই কবুল করেন, যা ইখলাসের সঙ্গে শুধুমাত্র তাঁর সন্তুষ্টির জন্য-ই করা হয়।’ (নাসাই শরীফ হাদীস নং ৩১৪২।)

এখানে আরবি ব্যাকরণিক যে পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে তা ওই সমস্ত স্থানে ব্যবহার করা হয়, সেখানে সীমাবদ্ধতার প্রয়োজন। একমাত্র তার আমলই কবুল হবে যে ‘ইখলাস’ এর সঙ্গে করেছে। আমল কবুল হওয়ার বিষয়টি ইখলাসের সঙ্গে সীমাবদ্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

মানুষ প্রচুর আমল করতে পারে, কিন্তু কবুলের প্রশ্ন আসবে ওই সমস্ত আমলে যেখানে ইখলাস আছে। যে আমলে ইখলাস নেই তাতে কবুলেই প্রশ্নই আসবে না। কারণ কবুল শুধুমাত্র ওই আমলের সঙ্গে খাস করে দেওয়া হয়েছে যেখানে ইখলাসের ভারি উপস্থিতি আছে।

বুখারির এক হাদিসে আছে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন কাল কিয়ামতের ময়দানে একজন শহীদ দাতা ও আলেমকে তাদের আমল সম্পর্কে জিজ্ঞাস করবেন। তখন এদের সবাই নিজ নিজ আমল দান-সদকা আল্লাহর রাস্তায় কোরবানসহ যতপ্রকার আমল আছে সব উল্লেখ করবে, আর বলবে হে পরওয়াদেগার এই আমলগুলো করেছি। তখন মহান আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত বলবেন তোমরা মিথ্যা বলছো। তোমরা ওই সব আমল করেছিল দুনিয়ায় খ্যতি অর্জন করার জন্য, সুনাম আর প্রসিদ্ধির জন্য, লোক মুখে তোমাদের নাম প্রচার হওয়ার জন্য। তোমরা তা দুনিয়ায় পেয়েছো। এরপর আল্লাহ তাদেরকে জাহান্নামে নিক্ষিপ করার জন্য ফেরেস্তাদের ডাকবেন। ফেরেস্তারা তাদেরকে পায়ে শিকল পয়ে টেনে হেঁচড়ে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবে।

মহান আল্লাহ শুধু মানুষের অন্তর দেখেন অন্য কিছু নয়

একজন মানুষ জানে না অপর মানুষের আমলগুলোর কি উদ্দেশ্য। কারণ আমলগুলোর উদ্দেশ্য অন্তরে লুক্কায়িত থাকে। মহান আল্লাহ সেই অন্তরই দেখেন। সেই কথা রাসূল (সা.) তার এক হাদিসে বলছেন। হজরত আবু হুরায়রা রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-

عن أبي هريرة رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : إن الله لا ينظر إلي صوركم وأموالكم ولكن ينظر إلى قلوبكم وأعمالكم رواه المسلم

 অর্থ : ‘আল্লাহ তোমাদের বাহ্যিক আকার আকৃতি এবং ধন-সম্পত্তির দিকে দৃষ্টিপাত করেন না, বরং তিনি দৃষ্টিপাত করেন শুধু তোমাদের অন্তর আমলের দিকে।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস নং ৬৫৪৩)

এই হাদিস দ্বারা বুঝা গেল কোন হুজুর কোন আমল করলো, কোন ইমামসাব কোন আমল করলো, কোন রিক্সা চালক কোন আমল করলো কিভাবে করলো, তা ধর্তব্য নয়, ধর্তব্য হলো কার অন্তরের অবস্থা কি? কার আমলের নিয়ত রয়েছে মহান আল্লাহর জন্য, কার আমলের নিয়ত রয়েছে অন্য কারো জন্য।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকেই আরো একটি হাদিস বর্ণিত হয়েছে। তাতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন-

عن أبي هريرة رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : إنما يبعث الناس على نياتهم، رواه ابن ماجة

অর্থ : ‘নিশ্চয়ই (কিয়ামত দিবসে) মানুষেদেরকে উঠানো হবে তাদের ইখলাসের ওপর।’ (ইবনে মাজাহ, হাদিস  নং ৪২২৯)

অন্যকে দেখানো উদ্দেশ্যে আমল করা শিরক

হজরত ওমর ইবনে খাত্তাব রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন- 

عن عمر بن الخطاب رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : إن يسير الرياء شرك، رواه ابن ماجة

অর্থ : ‘রিয়া (লোক দেখানো উদ্দেশ্যে আমল করা)- এর সামান্য পরিমাণও ‘শিরক’। (ইবনে মাজাহ, হাদিস: ৪৫৫)

আমলের মাঝে যদি মহান আল্লাহ ব্যতীত কারো নিয়ত থাকে তাহলে তা হবে শিরক ও কুফরির নামান্তর। শিরক কাকে বলে? শিরক বলে আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক মনে করা, বা আল্লাহর গুণে কাউকে গুনান্বিত করা। যে অন্যকে দেখানোর জন্য আমল করলো সে শিরক করলো অর্থ সে আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক করলো। কত বড় হুমকির কথা। আর শিরকের ব্যাপারে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘শিরক আল্লাহ কখনো মাফ করেন না।’ (সূরা: নিসা)

শুধু আমল নয় লোক দেখানো উদ্দেশ্যে দান করাও শিরক। হজরত শাদ্দাদ ইবনে আউস রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত; তিনি বলেন- রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

عن شداد بن أوس رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : من تصدق يرائي فقد أشرك، رواه أحمد

অর্থ : ‘যে ব্যক্তি লোক দেখানোর উদ্দেশ্যে দান খায়রাত করলো সে শিরক করলো।’ (মুসনাদে আহমদ, হাদিস নং ৪৫৫)।

শুধু দান করাও নয়, লোক দেখানো উদ্দেশ্যে কাপড় পরিধান করাও শিরকের অন্তর্ভুক্ত, যার কারণে মহান আল্লাহ তাতে কিয়ামতের দিন আগুন ধরিয়ে দিবেন। হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত; তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

عن عمر بن الخطاب رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : من لبس ثوب شهرة في الدنيا، ألبسه الله ثوب مذلة يوم القيامة ثم ألهب فيه نارا، رواه ابن ماجة 

অর্থ: ‘যে ব্যক্তি দুনিয়াতে রিয়া ও শাহওয়াতের পোশাক পরিধান করবে আল্লাহ তায়ালা কিয়ামতের দিন তাকে অপমানের পোশাক পরিধান করাবেন, অতপর তাতে আগুন ধরিয়ে দিবেন।’ (সুনানে ইবনে মাযাহ, হাদিস নং ৩৬০৭)।

ইখলাসের সঙ্গে আমল করার ফজিলত

হজরত আবু হুরায়রা রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

عن أبي هريرة رضي الله عنه قال، قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : ( مَا قَالَ عَبْدٌ لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ قَطُّ مُخْلِصًا إِلاَّ فُتِحَتْ لَهُ أَبْوَابُ السَّمَاءِ 

অর্থ : ‘কোনো ব্যক্তি যদি ইখলাসের সঙ্গে কালিমা لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ পড়ে তবে তার জন্য আকাশের দরোজাসমূহ খুলে দেয়া হয়।’ (তিরমিযি, হাদিস: ৬৮)

হজরত সাওবান রাযিআল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, 

عن ثوبان رضي الله عنه قال سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم : طوبى للمخلصين اولئك مصابيح الدجى، تتجلى عنهم كل فتنة ظلماء

অর্থ : ‘তোমরা মুখলিসদেরকে (ইখলাসের সঙ্গে আমলকারীদেরকে) সুসংবাদ দাও। কেননা তারা অন্ধকারে প্রদীপস্বরূপ। তাদের দ্বারা সকল ফেৎনার অন্ধকার দূর হযে যায়।’ (বায়হাকী, হাদিস নং ৩৪৩)

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ যেন আমাদেরকে আমাদের সব কাজ ইখলাসের সঙ্গে করার তৌফিক দান করেন। আল্লাহুম্মা আমিন।


6

শোকার্ত ব্যক্তিকে সান্ত্বনা দেবো

জাফর ইবনু আবী তালিব (রাঃ) মূতার যুদ্ধে গেলেন। যুদ্ধ শেষে সবাই বাড়ি ফিরে আসছিলেন। জাফরের স্বী আসমা ভাবলেন, তাঁর স্বামীও ফিরে আসবেন যুদ্ধ থেকে। তাই তিনি রুটি বানালেন। ছেলে-মেয়েদের গোসল করিয়ে নতুন জামা পরালেন। তাদের মাথায় তেল দিয়ে চুল আঁচড়ে দিলেন। আর অপেক্ষা করতে লাগলেন জাফরের জন্য।

এমন সময় নবি (সাঃ) এলেন জাফরের বাড়িতে। নবিজিকে দেখে জাফরের ছোট ছেলে-মেয়েগুলো দৌড়ে এল। নবিজি তাদের জড়িয়ে ধরে চুমু খেলেন। কিন্তু আসমা দেখলেন, নবিজির চোখ থেকে অশ্রু ঝরছে! এই দৃশ্য দেখে ভয় পেয়ে গেলেন আসমা। তিনি বললেন, ‘আপনি কাঁদছেন কেন? কোনো দুঃসংবাদ আছে?’ নবিজি বললেন, “হ্যা! জাফর শহীদ হয়েছে!” একথা শুনে আসমা কাঁদতে লাগলেন। মায়ের কান্না দেখে ছোট বাচ্চারা চুপ হয়ে গেল। প্রতিবেশী মহিলারা এসে আসমাকে সান্ত্বনা জানাতে লাগল। নবিজি বাড়ি ফিরে তাঁর স্ত্রীদের বললেন, “তোমরা জাফরের পরিবারের জন্য খাবার বানাও। আজ ওদের দুঃখের দিন।”

বন্ধুরা, মুমিনের দুঃখে সান্ত্বনা দেওয়া অনেক সাওয়াবের কাজ। তাই নবিজি সেদিন জাফর ইবনু আবী তালিবের বাড়িতে গিয়েছিলেন সান্ত্বনা দেওয়ার জন্য। নবি (সাঃ) বলেন, “যে মুমিন অন্য মুমিনের দুঃখে সান্ত্বনা দেয়, আল্লাহ তায়ালা কিয়ামাতের দিন তাঁকে জান্নাতের পোশাক পরাবেন।”

কথা বলব সুন্নাহ মেনে

১। হাই বা হ্যালো নয়;
বলবে,
আস-সালামু আলাইকুম
২। ‘থ্যাংক ইউ’ বা ‘ধন্যবাদ’ নয়;
 বলবে,
জাযাকাল্লাহ খাইরান!
মানে, আল্লাহ তোমাকে উত্তম বিনিময় দিন!
৩। ‘বাই! ভালো থেকো!’ বলবে না।
 বলবে,
ফী আমানিল্লাহ
আল্লাহ হাফেজ
আল্লহর নিরাপত্তায় থাকো!
আল্লাহ তোমাকে হেফাজত করুন!
৪। ‘বাহ, বাহ! ওয়াও!’ বলে কী লাভ?
বরং সুন্দর ও আশ্চর্যজনক কিছু দেখলে বলবে, সুবহানাল্লাহ!
৫। ‘ওকে, ঠিক আছে’ না বলে
বলবে,
ইনশা আল্লাহ!
৬। বেশি বেশি আলহামদুলিল্লাহ বলবে,
তুমি কেমন আছ?
আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি!

রাস্তায় বসারও আদব আছে

একদিন নবি (সাঃ) দেখলেন কয়েকজন সাহাবি রাস্তায় বসে কথাবার্তা বলছেন। তিনি বললেন, “তোমরা রাস্তায় বসা ছেড়ে দাও।” সাহাবিরা বললেন, ‘আল্লাহর রাসূল, এখানে বসা ছাড়া আমাদের আর কোনো ঊপায় নেই। এটাই আমাদের বসার জায়গা। এখানেই আমরা কথাবার্তা বলি।’ নবিজি বললেন, “যদি রাস্তায় বসতেই হয়, তাহলে রাস্তার হক আদায় করবে।” তারা বললেন, ‘রাস্তার হক কী?’ তিনি বললেন,

১। কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেওয়া।
২। দৃষ্টি নামিয়ে রাখা।
৩। সালামের জবাব দেওয়া।
৪। ভালো কাজে আদেশ করা।
৫। মন্দ কাজে নিষেধ করা।

আরেকদিন নবি (সাঃ) বলেন, “আমি এক ব্যক্তিকে জান্নাতে ঘুরে বেড়াতে দেখেছি। লোকটি রাস্তা থেকে একটি কাঁটাওয়ালা ডাল সরিয়ে দিয়েছিল। এই কাজে খুশি হয়ে আল্লাহ তাকে ক্ষমা করে দিয়েছেন এবং জান্নাত দিয়েছেন।”

সফরের আদব

১। সফরে যাওয়ার আগে বলবে, سُبْحَانَ الَّذِيْ سَخَّرَ لَنَا هَذَا وَمَا كُنَّا لَه مُقْرِنِيْنَ
“আল্লাহ এই বাহনকে আমাদের জন্য অনুগত করে দিয়েছেন। তিনি মহাপবিত্র। (তিনি না চাইলে) আমরা একে অনুগত করার ক্ষমতা রাখি না।”
২। সফরে যাওয়ার আগে পরিবার ও বন্ধুদের থেকে বিদায় নেবে। ঋণ পরিশোধ করবে, আমানত ফিরিয়ে দেবে, কারও প্রতি জুলুম করলে মাফ চেয়ে নেবে। কারণ এ সফর থেকে তুমি নাও ফিরতে পারো!
৩। সফর থেকে ফেরার সময় বলবে, اٰيِبُوْنَ تَائِبُونَ عَابِدُونَ لِرَبِّنَا حَامِدُوْنَ
“ফিরে আসছি, তাওবা করছি, ইবাদাত করছি আল্লাহর, প্রশংসাও করছি তার।”
৪। বৃহস্পতিবার সফরে বের হওয়া পছন্দনীয়, ভোরে রওনা দেওয়া উত্তম। দু’আ ও যিকরের সাথে পথ চলবে।
৫। নিরুপায় না হলে জুমু’আর দিনে সফর করা উচিত নয়। কারণ এতে অনেক সময় জুমু’আর সালাত ছুটে যায়।
৬। একসাথে কয়েকজন সফরে গেলে একজনকে আমীর বানিয়ে নেবে। দূরের যাত্রায় একাকী সফর করবে না, কুকুর ও ঘণ্টা নিয়ে সফর করবে না।
৭। অচেনা স্থানে বিশ্রাম নিলে এবং রাতে ঘুমালে আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাইবে। যে পথে হিংস্র প্রাণী ও বিষাক্ত কীটপতঙ্গ চলে, সেখানে ঘুমাবে না।
৮। সফর শেষে দ্রুত বাড়ি ফিরবে। ফেরার আগে বাড়ির লোককে জানিয়ে আসবে।
৯। মেয়েদের একা সফরে যাওয়া নিষেধ। সাথে মাহরাম-পুরুষ থাকতে হবে।

পথ চলব আদবের সাথে

১। বিনয়ের সাথে পথ চলবে। অহংকার করবে না, জাঁকজমক দেখিয়ে চলবে না। আল্লাহ বলেছেন, “রহমানের বান্দারা পৃথিবীতে নম্রভাবে চলাফেরা করে।” তুমিও তা-ই করবে।
২। দৃষ্টি নত করে রাখবে, বেপর্দা নারীদের দিকে তাকাবে না। মেয়েরাও পরপুরুষের দিকে তাকাবে না।
৩। পথে ময়লা-আবর্জনা ফেলবে না। পেশাব-পায়খানা করবে না। মানুষের কষ্ট হয় এমন কাজ করবে না।
৪। পথে কারও সাহায্য লাগলে সাহায্য করবে।যেমনঃ পথিককে পথ চিনিয়ে দেবে, অন্ধকে রাস্তা পার করে দেবে।
৫। মানুষকে সালাম দেবে, সালামের জবাব দেবে। সৎ কাজের আদেশ করবে, মন্দ কাজে বাধা দেবে, রাস্তা থেকে কষ্টদায়ক বস্তু সরিয়ে দেবে।
৬। নারী-পুরুষ মিলেমিশে পথ চলবে না। মেয়েরা চলবে রাস্তার কিনারা দিয়ে আর পুরুষরা চলবে মাঝখান দিয়ে।
৭। পথ চলবে মধ্যম গতিতে। একেবারে ধীরেও নয় আবার অতি দ্রুতও নয়।
৮। মেয়েরা মাহরাম ছাড়া একাকী পথ চলবে না। পর্দা করে মাহরামের সাথে বের হবে; যেমনঃ তোমার বাবা, আপন ভাই, চাচা, মামা।
৯। মাঝে মাঝে খালি পায়ে হাঁটা সুন্নত।



7

সাক্ষাৎ করব সময়মতো

ইবনু আব্বাস (রাঃ) ছিলেন জ্ঞান পিপাসু। হাদীসের খোঁজে বিভিন্ন মানুষের কাছে যেতেন তিনি। যেন তাদের মুখে নবিজির হাদীস শুনতে পারেন।

একদিন তিনি গেলেন এক ব্যক্তির বাড়িতে। কিন্তু ঘরের সামনে গিয়ে থেমে গেলেন। দরজায় কড়া নাড়লেন না। গায়ের চাদর বিছিয়ে সেখানেই শুয়ে পড়লেন তিনি! একসময় বাতাসের সাথে উড়ে আসা ধূলোবালি পড়তে লাগল ইবনু আব্বাসের মুখে। তবুও ইনবু আব্বাস সেখানেই শুয়ে রইলেন।

অনেকক্ষণ পর লোকটি বের হলো। দরজার সামনে ইবনু আব্বাসকে শুয়ে থাকতে দেখে সে খুব অবাক হলো। এরপর ইবনু আব্বাস তাকে জানালেন যে, তার কাছে তিনি হাদীস শুনতে এসেছেন।

বন্ধুরা, তখন ছিল দুপুরবেলা। বিশ্রামের সময়। তাই ইবনু আব্বাস দরজার কড়া নাড়েননি। অপেক্ষা করেছেন।

ফজরের আগে, দুপুরে এবং ইশার পর মানুষ বিশ্রাম নেয়। এই তিন-সময়ে কারও সাথে সাক্ষাৎ করতে যাবে না। এই  তিন-সময়ে অনুমতি ছাড়া বাবা-মা, ভাই-বোনের ঘরেও প্রবেশ করবে না। তুমি ছোট, তবুও অনুমতি নিতে হবে তোমাকে। এটাই যে আল্লাহর নির্দেশ!

অসুস্থ ব্যক্তিকে দেখতে যাব

একটি ছেলে নবিজির সেবাযত্ন করত। ছেলেটি ছিল ইয়াহূদি। একবার সে অসুস্থ হয়ে গেল। নবি (সাঃ) তাকে দেখতে গেলেন। তিনি ছেলেটির মাথার কাছে বসে বললেন, “তুমি ইসলাম গ্রহণ করো” একথা শুনে ছেলেটি তার বাবার দিকে তাকাল। ছেলেটির বাবা তার কাছেই ছিল। বাবা বলল, ‘তুমি তাঁর কথা মেনে নাও।’ সাথে সাথে ছেলেটি ইসলাম গ্রহণ করল। তখন নবিজি খুশি হয়ে বললেন, “সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর জন্য, যিনি তাকে জাহান্নাম থেকে বাঁচালেন।”

কেউ অসুস্থ হলে নবিজি তাকে দেখতে যেতেন। নবিজি বলেছেন, “যে ব্যক্তি সন্ধ্যাবেলায় রোগী দেখতে যায়, তার সাথে ৭০ হাজার ফেরেশতা বের হয়। তারা ওই ব্যক্তির জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে থাকে সকাল হওয়া পর্যন্ত। আর যে ব্যক্তি সকালে রোগী দেখতে যায়,তার সাথেও ৭০ হাজার ফেরেশতা বের হয়। তারাও ওই ব্যক্তির জন্য ক্ষমা চাইতে থাকে সন্ধ্যা হওয়া পর্যন্ত।”

নবি (সাঃ) আরোও বলেছেন, “যে ব্যক্তি কোনো রোগীকে দেখতে যায়, তার খোঁজ-খবর নেয় অথবা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কোনো মুসলিম ভাইয়ের সাথে সাক্ষাৎ করে, সেই ব্যক্তিকে ডাক দিয়ে বলা হয়, ‘তুমি খুশি হও! তোমার এই সাক্ষাৎ সুখময় হোক! আর তোমার ঠিকানা হোক জান্নাতের প্রাসাদ!’’’

রোগী দেখার আদব

১। রোগীর বিশ্রামের সময় তাকে দেখতে যাবে না। অবসর সময়ে যাবে।
২। রোগীর কাছে লম্বা সময় বসে থাকবে না। একটু দেখা করেই চলে আসবে। তবে রোগী চাইলে বেশি সময় থাকতে পারো।
৩। রোগী কষ্ট পায় এমন কথা বলবে না। রোগীকে কোনো দুঃসংবাদ দেবে না।
৪। রোগীর কষ্ট হলে তার সামনে হাসি-তামাশা করবে না, অযথা কথা বলবে না।
৫। রোগীর জন্য সুস্থতার দু’আ করবে। রোগী ও তার পরিবারকে সান্ত্বনা দেবে।
৬। রোগীকে আশা দেবে, সাহস জোগাবে। তাকে বলবে, ‘চিন্তা করো না, ভালো হয়ে যাবে, ইনশা আল্লাহ! আল্লাহ তোমাকে সুস্থ করে দেবেন।’
৭। রোগীর কাছে অসুখের বিস্তারিত বিবরণ জানতে চাইবে না। ডাক্তার বা চিকিৎসার সমালোচনা করবে না।
৮। নিজে ডাক্তার না হয়ে  রোগীকে এটা-ওটা খেতে বলবে না।
৯। রোগীর ব্যাপারে মন্দ ধারণা করবে না। আল্লাহর নবিরাও রোগে ভুগেছেন। রোগের কারণে মুমিনের গুনাহ মাফ হয়, মর্যাদা বেড়ে যায়।

8
Common Forum/Request/Suggestions / সাক্ষাতের আদব
« on: September 07, 2022, 05:00:42 PM »

সাক্ষাতের আদব

একবার এক সাহাবি প্রশ্ন করলেন, ‘আল্লাহর রাসূল, কারও ভাই বা বন্ধুর সাথে দেখা হলে, সে কি তার সামনে মাথা ঝুঁকাবে?’ নবি (সাঃ) বললেন, “না!” সাহাবি আবার প্রশ্ন করলেন, ‘তাহলে কি তাকে জড়িয়ে ধরে চুমু খাবে?’ তিনি বললেন, “না।” সাহাবি আবার প্রশ্ন করলেন, ‘তাহলে কি তার হাত ধরে মুসাফাহা করবে?’ তিনি বললেন, “হ্যাঁ!”

দুজন মুসলিম একসাথে মুসাফাহা করলে আল্লাহ তাদের দুজনকেই ক্ষমা করে দেন। যদি এই মুসাফাহা করা হয় একমাত্র আল্লাহর জন্য। তাই মুসলিম ভাইয়ের সাথে দেখা হলে প্রথমে সালাম দেবো। এরপর হাত মেলাব। এটাই মুসাফাহা করা। মানে একজনের হাতের তালুর সাথে আরেকজনের হাতের তালু স্পর্শ করা।

মুসাফাহা মানে কিন্তু ‘হ্যান্ডশেইক’ করা নয় বা হাত ঝাঁকানো নয়! মুসাফাহা করা সুন্নাহ। আর ‘হ্যান্ডশেইক’ করা অমুসলিমদের রীতি। তাই মুসাফাহার সময় হাত ঝাঁকাবে না। হাতে হাত ধরে কুশলাদি জিজ্ঞেস করবে। আগে হাত ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবে না। যখন অন্যজন হাত ছেড়ে দেবে, তখন তুমিও ছেড়ে দেবে। নবিজিও তা-ই করতেন।

ওহ! আরেকটা কথা! মুসলিম ভাইয়ের সাথে দেখা করবে হাসিমুখে। নবিজি বলেছেন, “তোমার ভাইয়ের প্রতি মুচকি হাসাও সদাকা।”

দরজায় কড়া নাড়ার আদব

একদিন ইমাম আহমাদ বসে ছিলেন তাঁর ঘরে। হঠাৎ অনেক জোরে শব্দ হলো দরজায়। ইমাম আহমাদ দ্রুত বের হয়ে এলেন ঘর থেকে। আর বললেন, ‘বাড়িতে পুলিশ এসেছে নাকি!’

দেখা গেল পুলিশ নয়, এক মহিলা এসেছে তাঁর কাছে মাসআলা জানতে!

হঠাৎ প্রচণ্ড শব্দে মানুষ ভয় পেয়ে যায়। মনে হয় যেন বাড়িতে চোর-ডাকাত এসেছে অথবা পুলিশ এসেছে! তাই উচ্চ শব্দে কড়া নাড়া উচিত নয়।

সাহাবিরা কড়া নাড়তেন মৃদুশব্দে। নবিজির দরজায় টোকা দিতেন নখ দিয়ে। ঘরের বাইরে থেকে নাম ধরে ডাকাডাকি করতেন না।

তুমিও তা-ই করবে। কারও বাড়িতে গেলে প্রথমে টোকা দেবে দরজায়। কেউ কাছে থাকলে এটুকু শব্দই যথেষ্ট। আর যদি বুঝতে পারো দরজার কাছে কেউ নেই, তাহলে কড়া নাড়তে পারো। অথবা কলিং বেল চাপতে পারো। তবে হাতের তালু দিয়ে দরজায় ধাক্কা দেবে না। জেনে রেখো, “যে কাজে কোমলতা থাকে সেটি সুন্দর হয়।”, নবিজি বলেছেন। এভাবে তিনবার শব্দ করবে। প্রতিবার শব্দ করার পর কিছুক্ষণ অপেক্ষা করবে। হয়তো ভেতরের লোক খাওয়া-দাওয়া করছে, ওজু-গোসল করছে কিংবা সালাত পড়ছে। তাই এতটুকু সময় অপেক্ষা করবে, যেন একজন ব্যক্তি চার রাকাআত সালাত শেষ করতে পারে!

তিনবার শব্দ করার পরেও সাড়া না পেলে আর দরজা ধাক্কাবে না। সেখান থেকে চলে আসবে।

নবি (সাঃ) বলেছেন, “তিনবার অনুমতি চাওয়ার পরেও অনুমতি না পেলে চলে আসবে।”

না জানিয়ে দেখতে আসা

একবার একলোক বিশ্রাম নিচ্ছিল তার ঘরে। এমন সময় দেখা করতে এল এক বন্ধু। ঘরে-থাকা লোকটি তার ছেলেকে বলল, ‘তুমি বলে দাও, আমি বাসায় নেই!’ছেলেটি বলল, ‘আব্বু বলেছে, আব্বু বাসায় নেই!’

একথা শুনে বাইরে-থাকা-লোকটি বুঝে ফেলল, তার বন্ধু বাসাতেই আছে, কিন্তু সে মিথ্যা বলছে!
এতে সে রাগ করে চলে গেল। আর কিছুটা দুঃখও পেল। এভাবে দুজনের বন্ধুত্ব নষ্ট হয়ে গেল।

তাই সরাসরি  বলে দেওয়াই ভালো, ‘কিছু মনে করো না। আমি এখন ব্যস্ত! পরে তোমার সাথে দেখা করব, ইনশা আল্লাহ।’

কাউকে চলে যেতে বললে তারও উচিত খুশি মনে চলে যাওয়া। কারণ আল্লাহ তায়ালা বলেছেন,

যদি তোমাদেরকে বলা হয়, ‘ফিরে যাও, তাহলে ফিরে যাবে, এটাই তোমাদের জন্য বেশি পবিত্র’। (সূরা নূর, ২৮ নং আয়াত)

কাউকে না জানিয়ে দেখা করতে আসা ঠিক নয়। কারণ সবারই ব্যস্ততা থাকে। হয়তো ভাবছো, কীসের এত ব্যস্ততা! না! ব্যস্ততার কথা জানতে চাওয়াও ঠিক নয়।

পরিচয় দেবো নাম বলে

একদিন জাবির (রাঃ) এসে কড়া নাড়লেন নবিজির দরজায়। নবিজি (সাঃ) বললেন, ‘আমি!’ এই জবাব শুনে নবিজি অখুশি হলেন। তিনি বললেন, “আমি! আমি কে?” তাই সাহাবিরা দরজায় শব্দ করার পর নিজেদের নাম বলতেন। যেন ভেতরের লোক বুঝতে পারে কে এসেছে।

দরজার ওপাশ থেকে পরিচয় জানতে চাইলে নিজের পুরো নাম বলবে। কারণ একজনের সাথে আরেকজনের কন্ঠের মিল থাকে। তা ছাড়া এক-দু কথায় চেনাও যায় না। তাই শুধু ‘আমি’ বললে পরিচয় বোঝা কঠিন।

ইমাম হব না অতিথি হলে

একদিন মালিক ইবনু হুয়াইরিস (রাঃ) গেলেন তাঁর বন্ধুর বাড়িতে। সালাতের সময় তারা মসজিদে গেলেন। সালাতের ইকামাত দেওয়া হলো। তখন মুসল্লিরা ইমামতি করতে বললেন মালিককে। তিনি এই প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন বিনয়ের সাথে। আর বললেন, ‘আপনারা কেউ ইমামতি করুন!’

মালিক বললেন, ‘নবি (সাঃ) বলেছেন, “তোমরা কারও সাক্ষাতে গিয়ে ইমামতি কোরো না। তাদের মধ্যেই কোনো ব্যক্তি যেন ইমামতি করে।” তাই কোথাও বেড়াতে গিয়ে নিজে থেকে ইমামতি করবে না।

জুতা খুলে সাজিয়ে রাখব

কারও বাড়িতে প্রবেশ করার সময় তাড়াহুড়া করবে না। বের হওয়ার সময়েও ধীরেসুস্থে বের হবে।

ময়লা জুতা নিয়ে ঘরে ঢুকবে না। জুতা খোলার আগে দেখবে, জুতায় কাদামাটি লেগে আছে কিনা। পাপোশ বা মাটিতে ঘষা দিয়ে জুতার তলা পরিস্কার করে নেবে। জুতা খোলার আদব খেয়াল রাখবে।

নবি (সাঃ) বলেছেন, “পরার সময় ডান পায়ের জুতা আগে পরবে, আর খোলার সময় বাম পায়ের জুতা আগে খুলবে।”

জুতা রাখার জায়গায় জুতা রাখবে। দরজার সামনে এলোমেলো করে ফেলে রাখবে না। অন্যের জুতার ওপর জুতা রাখবে না। নইলে তার জুতায় কাদামাটি ও ময়লা লেগে যাবে।

বসার আগে অনুমতি নেব

হাতিম তাঈ ছিলেন আরবের বিক্ষ্যাত দানশীন। তার ছেলের নাম আদি। আদি ইসলাম গ্রহণ করে মদীনায় এলেন। এরপর নবিজির সাথে দেখা করলেন। নবি (সাঃ) তাকে বসতে দিলেন গদিতে। আর নিজে বসলেন মাটিতে।

আদি বললেন, ‘আপনিই গদিতে বসুন!’ নবিজি বললেন, “না তুমি বসো!” আদি আবারও একই কথা বললেন। নবিজি বললেন, “না, তুমিই বসো।” শেষে গদির ওপরেই বসলেন আদি। গদিটি ছিল চামড়ার। ভেতরের ছিল খেজুর পাতা।

মেজবান যেখানে বসতে দেবে, মেহমানকে সেখানেই বসতে হবে। কারও বাসায় গিয়ে যেখানে-সেখানে বসবে না। ঘরের ভেতর চোখ পড়ে, এমন জায়গায়ও বসবে না।


9

সালাম দেবো আদব মেনে

করণীয়

মুখে হাসি রাখবে।
চেহারার দিকে তাকাবে।
সালামের পর হাতে হাত মিলিয়ে মুসাফাহা করবে।
স্পষ্ট আওয়াজে সালাম দেবে। কেউ শুনতে না পেলে সর্বোচ্চ তিনবার সালাম দেবে। এরপর থেমে যাবে।
অমুসলিমদের সালাম দেবে না, তবে কুশলাদি জিজ্ঞেস করবে।
আগে সালাম দেবে, এরপর অন্য কথা বলবে। যে আগে সালাম দেয়, তার অহংকার কম।
সাক্ষাতের শুরুতে ও শেষে সালাম দেবে।

বর্জনীয়

সালাম দেওয়া-নেওয়ার সময় মুখ ভার করে রাখবে না।
অন্যদিকে তাকিয়ে থাকবে না।
হাতের ইশারায় সালাম দেবে না। মাথা ঝুঁকাবে না। কুর্নিশ করবে না।
চিৎকার করে সালাম দেবে না। ‘আমি আপনাকে সালাম দিয়েছি’ এভাবে বলবে না!
পর্দা করতে হয় এমন নারী-পুরুষ একে অন্যকে সালাম দেবে না।
সালাম না দিয়ে কথা বলা শুরু করবে না।
সালাম না দিয়ে বিদায় নেবে না।

চলবে............

10
Common Forum/Request/Suggestions / সালামের আদব
« on: August 28, 2022, 01:25:10 PM »

সালামের আদব


নবি (সাঃ) বলেছেন, “নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট সেই ব্যক্তিই উত্তম, যে আগে সালাম দেয়।”

আগে-আগে সালাম দিই


বাহনে-থাকা-লোক সালাম দেবে পায়ে-হাঁটা-লোককে।
পায়ে-হাঁটা-লোক সালাম দেবে বসে-থাকা-লোককে।
অল্প সংখ্যক লোক সালাম দেবে বেশি সংখ্যক লোককে।
বাইরে থেকে-আসা-লোক সালাম দেবে ঘরে-থাকা-লোককে।
ছোটরা সালাম দেবে বড়দেরকে। তবে কিছু ক্ষেত্রে এর বিপরীত হলেও দোষের কিছু নেই। যেমনঃ নবিজি ছোটদের আগে সালাম দিতেন।
একসাথে অনেকে থাকলে, একজন জবাব দিলেই সবার সালামের জবাব হয়ে যায়।

যখন সালাম দেওয়া ঠিক নয় (মাকরুহ)

আযান-ইকামাতের সময়।
পেশাব-পায়খানা করার সময়।
মুখে খাবার থাকা অবস্থায়। যদি কথা বললে গলায় খাবার আটকে যাবার ভয় থাকে।
ইবাদাতরত অবস্থায়। যেমনঃ কেউ সালাত পড়ছে, কুরআন তিলাওয়াত করছে, যিকর করছে বা ওজু করছে।
খুতবা চলা অবস্থায় খতীবকে সালাম দেবে না। ক্লাস চলা অবস্থায় একে অন্যকে সালাম দেবে না। এতে সকলের মনোযোগ নষ্ট হয়।
দ্বীনি কাজে ব্যস্ত ব্যক্তিকে আগে সালাম দেবে না। যেমনঃ ইলমি গবেষণায় ব্যস্ত গবেষক (ফকীহ), বিচার কাজে ব্যস্ত বিচারক।
প্রকাশ্যে গুনাহে লিপ্ত ব্যক্তিকে আগে সালাম দেওয়া মাকরুহ। যেমনঃ যারা দাড়ি কামায়, বেপর্দায় চলাচল করে, নাচ-গান করে, নাটক-সিনেমা দেখে কিংবা সবার সামনে হারাম কাজ করে।

আলোচনাটি আবূ দাউদ-এর ৫১৯৭ এবং সহীহ বুখারী-এর ৬২৩৩ নং হাদীস অনুসারে সাজানো হয়েছে।


11

অমুসলিমের সালামের জবাব


একদিন এক ইয়াহূদি এল নবিজির কাছে। ইয়াহূদি বলল, ‘আস-সামু আলাইকুম!’ মানে তোমার মৃত্যু হোক! ‘আস-সামু’ অর্থ মৃত্যু। এই অদ্ভুত ‘সালাম’ শুনে খেপে গেলেন আয়িশা (রাঃ)। তিনি ইয়াহূদিকে বললেন, ’তোমারই মৃত্যু হোক! তোমাদের উপর আল্লাহর অভিশাপ!’

নবি (সাঃ)আয়িশাকে শান্ত হতে বললেন। আর ইয়াহূদিকে বললেন, “ওয়া আলাইকুম!” অর্থাৎ ‘তোমার কথা তোমাকেই ফিরিয়ে দিলাম!’ এভাবে ইয়াহূদির ধোঁকা ইয়াহূদিকেই ফিরিয়ে দিলেন নবিজি।

যারা ঠিকমতো সালাম দেয় না, তাদের সালাম তাদেরকেই ফিরিয়ে দিতে হবে। বলতে হবে, ‘ওয়া আলাইকুম!’

নবিজি বলেছেন, “ইয়াহূদি-খ্রিষ্টানদেরকে আগে আগে সালাম দিয়ো না। ওরা সালাম দিলে বলবে, ওয়া আলাইকুম।” কারণ সালাম মানে আল্লাহর কাছে শান্তি চেয়ে দু-আ করা। কাফিররা তো আল্লাহকেই বিশ্বাস করে না! তাই ওদেরকে সালাম দেওয়া নিষেধ।

আলোচনাটি সহীহ বুখারী-এর ৬৪০১ এবং সহীহ মুসলিম-এর ২১৬৭ নং হাদীস


12

ঘরে ঢুকব সালাম দিয়ে


একবার একলোক নবিজির ঘরে প্রবেশের অনুমতি চাইল। লোকটি বলল, ‘আমি কি ভেতরে আসব?’ নবিজি তাঁর খাদেমকে বললেন, “এই লোকটাকে অনুমতি চাওয়ার আদব শেখাও। তাকে বলতে বলো, ‘আস-সালামু আলাইকুম, আমি কি ভেতরে আসব? এরপর লোকটি নবিজির শেখানো নিয়মে অনুমতি চাইল। আগে সালাম দিলো। এরপর অনুমতি চাইল। এবার নবিজি তাকে ভেতরে আসার অনুমতি দিলেন।

ঘরে প্রবেশের আগে সালাম দেওয়া আল্লাহর আদেশ। আল্লাহ তা’আলা বলেছেন, “ হে মুমিনগণ, অনুমতি না নিয়ে তোমরা অন্যের ঘরে প্রবেশ কোরো না, আর ঘরের লোকদের সালাম দিয়ো।….”

يَـٰٓأَيُّهَا ٱلَّذِينَ ءَامَنُوا۟ لَا تَدْخُلُوا۟ بُيُوتًا غَيْرَ بُيُوتِكُمْ حَتَّىٰ تَسْتَأْنِسُوا۟ وَتُسَلِّمُوا۟ عَلَىٰٓ أَهْلِهَا ۚ ذَٰلِكُمْ خَيْرٌۭ لَّكُمْ لَعَلَّكُمْ تَذَكَّرُونَ ٢٧ فَإِن لَّمْ تَجِدُوا۟ فِيهَآ أَحَدًۭا فَلَا تَدْخُلُوهَا حَتَّىٰ يُؤْذَنَ لَكُمْ ۖ وَإِن قِيلَ لَكُمُ ٱرْجِعُوا۟ فَٱرْجِعُوا۟ ۖ هُوَ أَزْكَىٰ لَكُمْ ۚ وَٱللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ عَلِيمٌۭ ٢٨ لَّيْسَ عَلَيْكُمْ جُنَاحٌ أَن تَدْخُلُوا۟ بُيُوتًا غَيْرَ مَسْكُونَةٍۢ فِيهَا مَتَـٰعٌۭ لَّكُمْ ۚ وَٱللَّهُ يَعْلَمُ مَا تُبْدُونَ وَمَا تَكْتُمُونَ ٢٩

হে ঈমানদারগণ! তোমরা নিজেদের গৃহ ছাড়া অন্যের গৃহে প্রবেশ করো না, অনুমতি প্রার্থনা এবং গৃহবাসীদেরকে সালাম দেয়া ব্যতীত। এটাই তোমাদের জন্য কল্যাণকর যাতে তোমরা উপদেশ লাভ কর। সেখানে যদি তোমরা কাউকে না পাও, তাহলে তাতে প্রবেশ করবে না, যতক্ষণ না তোমাদেরকে অনুমতি দেয়া হয়। আর যদি তোমাদেরকে বলা হয়, ‘ফিরে যাও, তাহলে ফিরে যাবে, এটাই তোমাদের জন্য বেশি পবিত্র’। তোমরা যা কর সে সম্পর্কে আল্লাহ সবচেয়ে বেশি অবগত। যে ঘরে কেউ বাস করে না, তোমাদের মালমাত্তা থাকে, সেখানে প্রবেশ করলে তোমাদের কোন পাপ হবে না, আল্লাহ জানেন তোমরা যা প্রকাশ কর আর যা তোমরা গোপন কর। (সূরা নূর, আয়াত নং ২৭,২৮,২৯)

এমনকি নিজের ঘরে কেউ না থাকলেও সালাম দিয়ে প্রবেশ করবে। তখন বলবে, السَّلَامُ عَلَيْنَا وَعَلَى عِبَادِ اللَّهِ الصَّالِحِينَ আমাদের উপরে ও আল্লাহর নেক বান্দাদের উপরে সালাম!’

নবিজি আনাসকে বলেছিলেন, “প্রিয় ছেলে আমার, তুমি যখন তোমার পরিবারের লোকজনের কাছে যাও, তখন তাদের সালাম দিয়ো। এতে তোমার ও তোমার পরিবারের উপর বরকত হবে।”

ঘর বা মজলিস থেকে বিদায় নেওয়ার আগেও সালাম দেবে। নবিজি বলেছেন, “মজলিসে গেলে সালাম দেবে। বসতে ইচ্ছা হলে বসবে। যখন উঠে দাঁড়াবে তখনো সালাম দেবে। শেষের সালামের গুরুত্ব প্রথমটির চেয়ে কম নয়।”

আলোচনাটি আবূ দাউদ-এর ৫১৭৭ এবং তিরমিযি-এর ২৬৯৮ নং হাদীস


13

সালামের জবাব দিতেই হবে

তখন ছিল খলীফা উমরের শাসনকাল। সা’দ (রাঃ) খলীফার কাছে এসে বিচার দিলেন। তিনি বললেন, ‘উসমান আমার সালামের জবাব দেননি!’

উমর (রাঃ) বললেন, ‘উসমান, তোমার ভাইয়ের সালামের জবাব দিলে না কেন?’ উসমান বললেন, ‘আমি গভীর মনোযোগের সাথে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর একটি হাদীস নিয়ে ভাবছিলাম। তাই আশেপাশে কী ঘটেছে টের পাইনি।’ এই জবাব শুনে শান্ত হলেন সা’দ। দূর হলো তার দুঃখ। কারও সালামের জবাব না দিলে সে মনে দুঃখ পায়। তাই সালামের জবাব দিতে হবে স্পষ্ট আওয়াজে। যেন সালামদাতা সালামের জবাব শুনতে পায়।

যদি কেউ তোমার সালাম শুনতে না পায়, তাহলে তাকে তিনবার সালাম দেবে। তবে কেউ ঘুমিয়ে থাকলে এমনভাবে সালাম দেবে, যেন শুধু জেগে-থাকা লোকেরাই সালাম শুনতে পায়। আর ঘুমিয়ে-থাকা-লোকের ঘুম ভেঙে না যায়। যদি কেউ বলে, ‘অমুক তোমাকে সালাম জানিয়েছেন,’ তাহলে দুজনকেই সালামের জবাব দেবে। জবাবে বলবে, ‘আলাইকা ওয়া আলাইহিস সালাম।’

সালাম দেওয়া সুন্নত। আর সালামের জবাব দেওয়া ওয়াজিব। জবাব না দিলে গুনাহ হবে। ইশারা-ইঙ্গিতে সালামের জবাব দেওয়া যাবে না। নবিজি বলেছেন, “তোমরা ইয়াহূদি-খ্রিষ্টানদের মতো সালাম দিয়ো না। তাদের সালাম হলো হাত দিয়ে ইশারা করা।”

আলোচনাটি মুসনাদে আহমাদ-এর ১৪৬২ এবং আল-জামিউস সগীর-এর ১৩৮৩ নং হাদীস


চলবে............

14

রাষ্ট্র পরিচালনায় ন্যায়বিচারক বিশ্বনবী হযরত মোঃ (সাঃ)

নবী মুহাম্মদ (সাঃ), অন্যদের মত,  শুধুমাত্র একজন ধর্মপ্রচারক ছিলেন না। তিনি এই পৃথিবীতে এক ধরণের বিপ্লব নিয়ে এসেছিলেন।
 
এই কথাটি কেন বলেছি, সেই বিষয়ে কিছু তথ্য দেই, তারপর আমরা আবার মূল প্রশ্নে চলে আসবো।

আপনি কি জানেন, নবী হওয়ার পর এই মানুষটি, সর্বপ্রথম সমাজে কি পরিবর্তন চেয়েছিলেন ?

তিনি চেয়েছিলেন, নারীর অধিকার।

সমাজ পরিবর্তনের জন্য কোরআনের আয়াতগুলিকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সাজালে

প্রথম আয়াতটির মূল বিষয় ও আদেশ ছিল, "নারী শিশুদেরকে  জীবন্ত কবর দেয়া যাবে না"

এর পর কিছুদিন পরই তিনি বললেন, একজন নারী তার পিতার, স্বামীর ও সন্তানের সম্পদের অংশীদার হবে।

রাসূল (সাঃ) যখন এই ঘোষনা দিলেন, তখনই তিনি সমাজপতিদের রোষানলে পড়ে গেলেন।

এত দিনের মেনে চলা এই সংস্কৃতি ও আইনের বিরুদ্ধে, এই মত তারা মেনে নিতে পারেনি।

(নারী শিশুকে জীবন্ত কবর দেয়ার মত অপরাধ এই পৃথিবীতে এখনো আছে, আধুনিক ভারতে প্রতিদিন দুই হাজার নারী শিশুর এবরশন হয় কিন্তু কত জন নারীবাদী এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়ছেন ?)

তারপর আসলো ক্রীতদাসের কথা।

তিনি জানালেন, মানুষ আর মানুষের ক্রীতদাস হতে পারে না।

মৃত পিতার রেখে যাওয়া ইথিওপিয়ান ক্রীতদাসী উম্মে আইমানকে নিজের মা, আর উপহার হিসাবে পাওয়া জায়েদকে নিজের ছেলে, হিসাবে যখন সমাজে পরিচয় করিয়ে দিলেন, তখন সারা পৃথিবীতে আলোচনা শুরু হয়ে গেলো,

মুহাম্মদ (সাঃ)আসলে কি চায় ?

ক্রীতদাস ছাড়া সমাজ ব্যবস্থা কেমন করে চলবে?  অর্থনীতি কি করে আগাবে? ক্রীতদাসের দল মুক্তির জন্য আন্দোলন শুরু করলে কি অবস্থা হবে ?
ব্যাস, তিনি হয়ে গেলেন সমাজের সবচেয়ে বড় শত্রু।

(আজকের আধুনিক ইউরোপীয়ানদের হাজার বছরের ক্রীতদাস প্রথা এখনো বহাল তবিয়তেই আছে। ব্ল্যাক লাইভস ষ্টীল ডাজ নট মেটার )

ম্যালকম এক্সের মত বিপ্লবীরা, মুহাম্মদ আলীর মত শক্তিমান পুরুষরা যখন নবী মুহাম্মদ (সাঃ) কে ভালোবাসতে শুরু করলো, তখনই তাদের মনে হলো, সব অপরাধ ঐ আরব লোকটিরই।

তিনি বললেন,

ধনীদের সম্পদের সুষম বন্টন হতে হবে। তাদের সম্পদের উপর গরিবের অধিকার আছে।


তিনি ঘোষণা দিলেন, সবাইকে জাকাত দিতে হবে।

সমাজের ধনী ব্যবসায়ী ও ক্ষমতাবানরা ভাবলো,
 
মুহাম্মদ একজন সমাজ বিপ্লবী, তাকে সমাজ থেকে তাড়িয়ে দিতে হবে।

শেক্সপিয়ারের শাইলকের মত লোভী সব ইহুদি মুদ্রা ব্যবসায়ীদেরকে সুদ বন্ধ করতে আদেশ দিলেন।

ধনী-গরিবের অর্থনৈতিক বৈষম্যকে স্থিতিশীল করার চেষ্টা করলেন।

সবাই ভাবলো, মুহাম্মদ (সাঃ) একজন সোসালিস্ট, তাকে মেরে ফেলতে হবে।

নিজের অনুসারীদেরকে বললেন,

তোমরা আর মদ পান করবে না। সমাজে অন্যায় অবিচার কমে গেলো। চুরি ডাকাতি কমে গেলো।

মাতাল স্বামীর সংখ্যা কমে যাওয়ায়, নারী নির্যাতন প্রায় বন্ধ হয়ে গেলো।

অসভ্য পুরুষের মনে হিংসা শুরু হলো, এ লোক পাগল নাকি? মদ খাবে না, নারীকে নিয়ে ফুর্তি করবে না

সে কোন ধরণের সমাজ চায়?
 
মাদক ব্যবসায়ীরা একজোট হয়ে মুহাম্মদকে (সাঃ) ঠেকানোর জন্য নতুন পরিকল্পনা শুরু করলো।

অসহায় মানুষের কষ্টার্জিত সম্পদ নিয়ে জুয়ার আসরের নিষেধাজ্ঞা আসলো।

মুহাম্মদের (সাঃ)আর কোন রক্ষা নেই। সে বড় বেশি বাড়া বাড়ি করছে।

জুয়ার ব্যবসা ছাড়া সমাজে বিনোদনের আর কি রইলো ?

মুহাম্মদকে (সাঃ) ঘর ছাড়া করতে হবে। তার সব আয়-রোজগার বন্ধ করতে হবে।

এখন কি বুঝতে পারছেন,


কেন মুহাম্মদের (সাঃ)এত অপরাধ ?

এই যে এখন, নবী মুহাম্মদকে (সাঃ) কে এত বছর পর অপমান করার চেষ্টা করা হয়েছে

তার কি কারন?

 শুধু "ফ্রীডম অফ স্পিচ" ?

নো।

যে মানুষটির অনুসারীরা শুধু ভালোবাসা দিয়ে একসময় আফ্রিকা বিজয় করেছিল

সেই আফ্রিকার ২৪ টি দেশের, শত বছরের কলোনিয়াল নির্যাতন নিপীড়ন ও শোষণ থেকে যখন আলজেরিয়া ও তিউনেশিয়ার মত দেশগুলি অর্থনৈতিক ও রাজনৌতিক মুক্তি চেয়েছে

তখনই নবী মুহাম্মদ (সাঃ) হয়ে গেলেন বড় অপরাধী।

লক্ষ-লক্ষ মানুষের প্রাণের বিনিময়ে, অসহায় ও নিরপরাধ মানুষকে নিজের ক্রীতদাস করে রেখে যে সম্পদের পাহাড় তারা একসময় গড়েছেন, সেটি যখন হুমকির মুখে তখনই সব রাগ ও ক্ষোভ এসে জমা হয়েছে।

এখন তাদের নবীকে অপমান করতে হবে, তাঁর ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শন করতে হবে।

তারপর আফ্রিকাতে আবার জঙ্গি দমানোর জন্য ন্যাটো বাহিনীকে পাঠাতে হবে।

কিন্তু তারা পারবে না।

পিউ রিসার্চের গবেষণা অনুযায়ী, শুধু ইউরোপেই প্রতিবছর প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করছে।

আপনি দেখবেন কিছু দিন পর এই সংখ্যা হবে, দশ হাজার।

কারন হলো, এই ঘটনার পর, মানুষ জানতে চাইবে ,

কে এই মুহাম্মদ ? (সাঃ)

প্রথমেই সে জানবে।

মানুষটি শুধু আমাদেরকে মনে প্রাণে একজন মাত্র সৃষ্টিকর্তাকে ভালোবাসতে বলেছেন। যার কোন শরীক নেই। যিনি এক ও অদ্বিতীয়।

মানুষরূপী কোন খোদার কাছে মাথানত করতে নিষেধ করেছেন। শিরক করতে নিষেধ করেছেন।

একজন মানুষের জন্য শুধু এতটুকু জানাই যথেষ্ট।


এখন কেউ যদি চোখ বন্ধ করে সূর্যের আলোকে দেখতে না চায়, তাহলে কি সূর্য আলো দেয়া বন্ধ করে দিবে নাকি সূর্যের আলো হারিয়ে যাবে ?

নবী মুহাম্মদ (সাঃ) হলেন এই পৃথিবীতে সেই আলো।

এই আলোকে কেউ লুকিয়ে রাখতে পারবে না।


"Truth is Truth"
ইউ ডিনাই অর ইউ একসেপ্ট।
কলমে- Dr.Shamsul Alam

From the wall of Honorable Chairman, Board of trustees; DIU

15

সালাম দেবো পুরোপুরি

একবার একলোক এসে নবীজিকে বললেন, ‘আস-সালামু আলাইকুম।’ নবীজি তাকে তার সালামের জবাব দিলেন। এরপর সাহাবিদের বললেন, “এই সালামের নেকি ১০ টি।” এবার আরেকজন এসে বললেন, ‘আস-সালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ।’ নবীজি তার সালামের জবাব দিলেন। এরপর বললেন, “এই সালামের নেকি ২০ টি।” এবার এলেন তৃতীয় ব্যক্তি। তিনি বললেন, ‘আস-সালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।’ এভাবে পুরো সালাম দিলেন। নবীজি সালামের জবাব দিলেন। আর সাহাবিদের বললেন, “এই লোক পেয়েছে ৩০ টি নেকি!”

আল্লাহ তায়ালা বলেছেন,

কেউ সালাম দিলে তোমরা তার চেয়েও উত্তমভাবে সালামের জবাব দেবে অথবা তার মতো বলবে।

তাই তোমাকে কেউ সালাম দিলে, জবাবে তার মতো বলবে অথবা একটি-দুটি শব্দ বেশি বলবে। কম বলবে না।

‘আস-সালামু আলাইকুম’-এর জবাবে বলবে, ‘ ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহ!’

আর ‘আস-সালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ’-এর জবাবে বলবে,’ ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া-বারাকাতুহু!’ মানে ‘তোমার ওপরেও আল্লাহর পক্ষ থেকে শান্তি, রহমত ও বরকত হোক!’

আলোচনাটি আবূ দাঊদ-এর ৫১৯৫ নং হাদীস এবং সূরা নিসা-এর ৮৬ নং আয়াত

চলবে...............

Pages: [1] 2 3 ... 10