Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Dr. Md. Harun-or Rashid

Pages: 1 2 [3] 4
31
Heritage/Culture / Re: Bengal under the Muslim Rule
« on: June 12, 2012, 10:22:48 AM »
Bengal under Independent Sultans (1338-1538 AD)

   1) East Bengal at Sonargaon 1338-1357 AD
   2) Ilias Shahi Dynasty1342-1412 AD
       Later Ilias Shahi 1436-1487 AD
   3) Raja Ganesh and his family 1412-1436 AD
   4) Abisynian Period 1487-1493 AD
   5) Hossain Shahi Piriod 1493-1538 A

The rule of the independent sultans (1338-1538) in Bengal
In 1338 AD, Fakhruddin Mubarok Shah established himself as independent Sultan of Sonargaon. After his death in 1349 Sonargaon succeeded by his son Gazi Shah. In that time an army commander Ali Mubrak seized control and established an independent kingdom at Lakhnauti. In 1342 he was overthrown by Haji Iliyas. Sultan Iliyas Shah established the Iliyas Shahi Dynasty which ruled Bengal for the next hundred years.

Iliyas Shah
Haji Iliyas took control of Lakhnauti in 1342 and assumed the long title of ‘Sultan Shamsuddin Abul Muzaffar Iliyas Shah’. Some historians think that Iliyas was the first ruler who brought the three major geographical units of Satgaon, Sonargaon and Lakhnauti under a single authority. Because of that he called himself Shah-i-Bangala or the King of Bengal.
Haji Iliyas's rise as an independent ruler in Bengal offended the Sultan in Delhi. Sultan Firuz Tughluq invaded Bengal with an enormous army in 1353 A.D. But Firuz Shah could not crush Haji Iliyas who continued to rule freely. He also extended his authority in Bihar, Nepal, Orissa and Assam. Although Fakhruddin started the process of an independent Bengal in 1338 A.D Haji Iliyas was the real founder of Bengal.

Sikandar Shah
Sultan Iliyas Shah was succeeded by his son Sikandar Shah. Sikandar Shah ruled a prosperous and politically stable Bengal for about thirty years and died around 1390. Sultan Firuz of Delhi invaded Bengal again in 1359, but Sikandar, like his father, successfully faced the imperial army of Delhi. After this date, the Sultans of Delhi realised the growing strength of the Sultans of Bengal and they did not try to capture Bengal for quite a long time.

Ghiyasuddin Azam
Sikandar Shah was succeded by his son Ghiyasuddin Azam Shah (1390--1410). Ghiyasuddin was an able ruler. He exchanged embassies with the Chinese Emperor and maintained correspondences with the famous poet, Hafiz of Iran. He also patronised several madrassa in Mecca and Medina.
Sultan Ghiyasuddin was also famous for his respect for law and justice. It is said that he once told the Chief Justice of his kingdom that though he was the Sultan, he was not above the law. Ghiyasuddin Azam Shah was one of the more widely known of medieval Sultans of Bengal. His tomb is situated in Narayanganj of current day Bangladesh.

Raja Ganesh
The death of Ghiyasuddin Azam was followed by political instability. His son Saifuddin Hamza Shah was murdered by his slave Shihabuddin. Taking advantage of the confusion, a Brahman noble of Vaturia, Dinanjpur, Raja Ganesh, assumed power in Bengal. Ganesh commanded great authority, he could not stay in power for long due to constant pressures from Muslim nobles. He is said to have appointed many Hindus in high posts and persecuted many Sufis. Sultan Ibrahim Sarki brought a force from Jainpur and Raja Ganesh was forced to abdicate the kingdom in favour of his son, Jadu, who agreed to embrace Islam and was named Jalaluddin Mohammad Shah. After Ibrahim Sarki left Bengal, Ganesh reassumed power and reconverted his son to Hinduism. Only after Ganesh's death in 1418 A.D. Jalaluddin return to Islam & rulled Bengal since 1432 as a pious Sultan.

Jalaluddin's son, Shamshuddin Ahmad Shah rulled as a just ruler. He was murdered by his slave and then Nasir Khan ascended the throne. After Nasir Khan the Nobels restored the Iliyas Shahi Dynasty by installing Nasiruddin Mahmood Shah who is a grandson of Haji Iliyas. He ruled for seventeen years (1433-1459), and during his reign the boundary of Bengal was greatly extended.
Nasiruddin was succeeded by his competent son Rukhunuddin Barbak Shah (1459-1574).
Ruknuddin had brought a large number of slaves of Ethiopean origin who became politically powerful over the time. Soon after Ruknuddin's death, the activities of some of these 'slaves' created political instability. Between 1487 and 1493, four of the slaves became Sultans and were killed by rivals.
1) Shahajada Barbak Shah
2) Saif Uddin Firuz Shah
3) Nasir  Uddin Mahmud (2nd)
4) Shams Uddin Mozaffar Shah
A period of unrest was finally brought to an end when a noble of Arab origin named Sayid Hussain assumed power (1494) and entitled himself as Alauddin Hussain Shah. Thus the Hussain Shahi Dynasty was established.

Hussain Shahi Period
Sultan Alauddin Husain Shah occupied a significant place in the medieval history of Bengal. He extended the boundaries of Bengal by conquering Kamarupa and Kamta, annexing Comilla and Chittagong to his kingdom and sending expeditions to Orissa. He also repulsed an attack by Sikander Lodi, the Sultan of Delhi. His son Prince Nusrat Shah was a skilled administrator.

Nusrat Shah (1519--1532) ascended the throne of Bengal after the death of Hussain. Nusrat Shah was an able ruler like his father. He cleverly tried to avoid any confrontation with Babur, founder of the Mughal Empire, who had appeared in the eastern Indian scene after his victory at Panipath (1526). Nusrat professed neutrality and avoided having any connection with the anti-Mughal confederacy that was formed by Mahmud Lodi with Afghan chiefs. When Babur sent an expedition to Bengal, Nusrat Shah concluded a treaty which made Bengal safe.
Sultan Nusrat Shah was killed by an assassin in 1532 and succeeded by Alauddin Feruz Shah and then Ghiasuddin Mahmud. But they could not reverse the trend of decline of the Husain Shahi Dynasty that had started after the death of Nusrat Shah. Meanwhile, the Afghans grew stronger under the leadership of Sher Shah, who posed a great threat to the Mughals in Delhi as well as the Sultans of Bengal. Sher Shah captured Gaur in 1538 and the independent status of Bengal was finally lost.

See the short notes on Independents Sultans of Bengal following attached file.

32
Heritage/Culture / Re: Bengal under the Muslim Rule
« on: June 11, 2012, 09:44:56 AM »
Bengal under the Governors of Delhi Sultans (1204-1338 AD)

The Initial period (1206-1227 AD)
After the death of Bakhtiyar, his generals came to cover the throne. Muhammad Shiran, Ali Mardan, Husam Uddin Iwaz and Gias Uddin Iwaz Khaljee, generals of Bakhtiyar, ruled Bengal till 1227 AD. This is the initial period of Muslim rule in Bengal. Gias Uddin Iwaz Khalji (1212-1227 AD), the first notable ruler of Muslim Bengal who tried to expand and consolidate the Muslim rule in Bengal in a planned way.

The Expansion period (1227-1287 AD)
In 1227 AD Prince Nasiruddin succeeded Iwaz Khalji to the governorship of Lakhnauti. He is the son of Sultan Iltutmish of Delhi.  15 Governors appointed by Delhi sultans leaded Lakhnauti during the 60 years of this regime. In 1287 AD, another prince Nasir Uddin Bugra Khan son of Sultan Gias Uddin Bolbon took the governorship.  At the time of Bugra Khan, Muslim Bengal consisted of four distinct divisions:
1)   Bihar
2)   Lakhnauti-Devkot region of north Bengal
3)   Satgaon-Hughli in southwest Bengal
4)   Sonargaon region in east Bengal.

Rukon Uddin Kaikaus, younger son of Bugra Khan succeeded his father and continued till 1301 AD.  He expended his territory in the eastern region and he issued coins from the revenue collected from 'Bang'. Sultan Shamsuddin Firuz Shah succeeded Kaikaus and resumed till 1322. He expanded the kingdom upto Mymenshing and Sylhet. The famous saint Sha Jalal spread the light of Islam under the patronization of Firuz Shah.

Sultan of Delhi Gias Uddin Tughlok marched towards Bengal with a large army in 1324 AD. He reorganized the administration of Muslim dominion in Bengal; divided it into three administrative units of
1) Lakhnauti
2) Satgaon
3) Sonargaon.

Sultan Gias Uddin Tughlok confirmed Nasiruddin Ibrahim in the government of Lakhnauti and Bahram Khan was made governor of Sonargaon and Satgaon. In 1338 Bahram Khan died. On his death at Sonargaon Fakhruddin captured power, proclaimed independence and assumed the title of ‘Sultan Fakhruddin Mobarak Shah’. Ibn Batuta, the eminent visitor, visited Bengal in this period.

This acted as a signal for a new series of struggles for power which ultimately led to the establishment of Ilyas Shahi rule in Bengal. It heralded the beginning of the Independent Sultanate that continued for two hundred years (1338-1538).

For further study: Jadunath Sarkar, The History of Bengal, Vol. II, Dhaka University Press.

33
Story, Article & Poetry / গুচ্ছ কবিতা
« on: June 06, 2012, 11:34:19 AM »
হেরেমের বালিকারা
গতকালের গোধুলিবেলায় দলছুট যে বালিকার সাথে
হেঁটেছি গৌড়ের রাজপথে, কালিন্দি-কীর্তিনাশার চরে
আজ তার সাথে দেখা ফার্মগেট ওভার ব্রিজের ওপরে
‘লুকোচুরি দরজা’র খিলানের মত তার ভ্রু নাচিয়ে
দরিদ্র ফেরিওয়ালা, অনাথ ভিখিরিদের থেকে গা বাঁচিয়ে
অনায়াশে এবং অকপটে সে পার হয়ে গেল ভিড় ঠেলে

কালিন্দি পাড়ের শঠিফুল-রঙা তার নেকাব থেকে
কবেকার ফেলে আসা সন্ধ্যার বাতাবী লেবুর ঘ্রাণ
ততক্ষণ আমার মন-প্রাণ
ভিজিয়ে উড়ে চলল মানিক মিয়া এভিনিউ ধরে ধরে
শীতলক্ষ্যার স্যাঁতস্যাঁতে চরে।

কিন্তু আমাদের তো দৌড় কালিন্দির খাড়া পাড় অবধি,
‘সাতাশঘরা প্রাসাদে’, হেরেমের দেয়ালে শিকলঘন্টি
কোনদিন বেজে উঠবেনা জেনেও আমরা নিরবধি
কীর্তিনাশার তীরে তীরে গড়ে গেছি অবুঝ শিলালিপি;
কতকাল হেরেমের তাগড়া খোজাদের পাহারা এড়িয়ে
গেছি বালিকাদের উচ্ছল হাসির দিকে, তাদের খিলানের মত ভ্রু
তাড়িয়ে নিয়ে গেছে গৌড়ের রাজপথ-বাজার-তমাল-তরু;
ছইওলা ঘোড়াগাড়ীর ধুলায় খয়েরী মেঘ ঘুর্ণিপাক খেতে খেতে
নেমে গেছে কীর্তিনাশার ক্ষীণ জলধারার কাছে। হেরেম বালিকার
নেকাবের ঘ্রাণ মেলে আজও মানিকমিয়া দিয়ে হেঁটে যেতে যেতে।
ঢাকা, ১২/০৩/২০১২

খুঁজে ফিরি আজও তাঁরে

খুঁজে ফিরি আজও তাঁরে
বোশেখের তপ্ত দুপুরে-বিরান মাঠের ধারে
বকের পাখার মতন দুধসাদা মেঘের মিনার
এলোমেলো দোলে -সেইখানে মুখ খুঁজি তাঁর!
পাণ্ডুর হয়ে আছে পাণ্ডুয়া সেই কবেকার;
নিমগ্ন মাঝরাঙার মত একাকী খিয়ার পাথারে!

দেখা মেলে বাড়ালেই দু’পা
কলার শেষ মোচার মত ঝুলে থাকা ভরাট তাঁর খোঁপা
খুলে দেয় বৈশাখী বাতাস, দোলায় কলাপাতার চিরুনী,
আঁচড়ায়ে পরিপাটি করে বরেন্দ্রভূমি, বেঁধে দেয় বেণী;
বুকের ভেতর শুধু বয় ধুলা-রঙ ঝড়-কেটে চলে স্বপ্নের বিনুনী।
তবুও দিনগুলি কেটে যায় আমনের অপেক্ষায়-বুনে চলি রোপা!

এইভাবে বুক বাঁধি ফের
ফিরে যে পাবোনা তাঁরে জানা আছে ঢের!
বুকপকেটে তবু নিয়ে ফিরি সেদিনের জান্নাতাবাদ
তপ্ত দুপুর ভেঙে নামে যদি ঝড়- দূর যদি হয় অপবাদ-
আরো একবার পা ডোবাই বৈশাখী জলে -বড় সাধ;
সাধ্যের বুরুজ থেকে শিলা ভাঙে -পাই তার টের!

খুঁজে ফিরি আজও তাঁরে
বোশেখের তপ্ত দুপুরে-বিরান মাঠের ধারে
বকের পাখার মত দুধসাদা মেঘের মিনার
এলোমেলো দোলে -সেইখানে মুখ খুঁজি তাঁর!
পাণ্ডুর হয়ে আছে পাণ্ডুয়া সেই কবেকার
নিমগ্ন মাঝরাঙার মত একাকী খিয়ার পাথারে!
১০/০৫/২০১২

চোখ জোড়া বুঁজে এলে
চোখ জোড়া বুঁজে এলে তেড়ে আসে তারা
অগোছালো-এলোমেলো-দিক্-দিশাহারা
জৈষ্ঠ্যের রাতের বাতাসে ঝিঁঝিঁর ডাকের মত অবিরাম
ডেকে যায়; বুঝিনা খেই তার -ডান, নাকি বাম?
কোন্ দিকে গেলে পরে বর্হিপথ- কোন্ গুহামুখ
পানে এগোলে -ফিরে পাবো বতুতার দেখা সুখ;

বেসুরেরও সুর আছে-কোলার সান্ধ্য গানেও স্বরলিপি,
গোল বাঁধে বাদকের অনৈক্যে জানি, বলি, ভাগ্যলিপি
লেখা থাকে, ঘোল-রঙ চাঁদের জমীনে কর্মহীন চরকারা যত
চেয়ে থাকে তারা আমাদের বোজা চোখের ওপর, অবিরত
পিছু ধায়-ধেয়ে চলা চাঁদের মত আসে  ছুটে ছুটে
খুঁজে ফেরে জৈষ্ঠ্যের রাতের আধাঁরে ঘুঁটঘুঁটে।
০৮/০৫/২০১২
 

ঝিঁঝিঁ
তপ্ত বাতাসে সাঁতার কেটে কেটে অবসন্ন মেঘগুলি শেষে
পা ছড়িয়ে বসে পড়ে বেসুরো ঝিঁঝিঁদের কোরাসের মাঝে,
সান্ধ্য আসর মাতানো বর্ষার আগমনি গান ভালবেসে
গা এলিয়ে বসে পড়ে কুমারী মেঘেরা ধুলারঙ জৈষ্ঠ্যের সাঁঝে।
 
বেরসিক চৌকিদারের বাঁশি-উদ্বেগ নিয়ে আসে পলাশীর মত
বিষন্নতা আনে ভগিরথীর দুই কূলে-ফারাক্কার ভাটিতে ও চরে
তারপরও নিমগ্ন নিমিষেই; জারি-সারি, ভাটিয়ালি অবিরত
গেয়ে যায় তারা; মেঘের মেয়েরা সুধা ঢালে কড়ির কলসে ভরে।

স্যাঁতস্যাঁতে মাটিও জান্নাত বনে যায় পেলে বাদশাহ হুমায়ুন
কিশোর রাতগুলি হঠাৎ যৌবনে বাঁক নেয় পানিপথ ধরে;
ঘোলামুখ চাঁদ সাঁত্রে চলে আকাশের নদী-সাথে মেঘ সঘন,
দলছুট গায়কেরা ডেকে যায় নিরুদ্বেগ-একমনে -মমতাভরে।
১৬/০৫/২০১২[/size]

34
Heritage/Culture / Bengal under the Muslim Rule (1204-1576 AD)
« on: June 04, 2012, 10:46:59 AM »
Bengal under Muhammad Bakhtiyar Khalji
Origin of Bakhtiyar
Ikhtiyaruddin Muhammad Bakhtiyar Khalji inaugurated Muslim rule in Bengal by conquering its northwestern part in early 1205 AD. He was a native of Garamsir (modern Dasht-i-Marg) in northern Afghanistan belonged to the Khalj tribe of the Turks.
He entreated Muhammad Ghuri at Ghazni to enlist him as a soldier. But, because of his short physical stature with long arms extending below the knees, his prayer was rejected. Then he proceeded to Delhi and sought an employment under Qutbuddin (the Chief of army) but there also his luck fared no better. Thence he went to Badaun where he was appointed to a lower post by Malik Hizbaruddin.
He was granted the parganas of Bhagwat and Bhuili in the district of Mirzapur as Jagir. Soon a large number of Khalji adventurers gathered around him and with their help he carried on raids into the neighbouring territories.

Primary Invention
In 1203 AD Bakhtiyar made a sudden dash against Bihar. He occupied it and met Qutbuddin with rich presents. Qutbuddin   received him with great honour.

Bakhtiyar started his adventure towards Bengal in 1204-05 AD.  He marched so swiftly through the unfrequented Jharkhand region towards Nadia that only seventeen horsemen could keep pace with him. The city dwellers took him to be a horse-dealer.  Bakhtiyar captured the palace by surprise. Raja Laksmanasen 'fled away by the back-door' bare footed. Meanwhile the main army of Bakhtiyar Khalji arrived and Nadia came under his possession.

Territory of Bakhtiyar
Bakhtiyar Khalji stayed in Nadia for a short period and then marched upon Gaur (Lakhnauti). He conquered it without any resistance in 601 AH/1205 AD and made it the seat of his government. Afterwards he proceeded eastward and extended his authority over north Bengal. Bakhtiyar Khalji's territories extended from the modern town of Purnia via Devkot to the town of Rangpur in the north, to the river Padma in the south, to the rivers Tista and Karatoa in the east and to the Bihar in the west.

Tibet Expedition
The last important event in the career of Bakhtiyar Khalji was his Tibet expedition. While he was making preparations for his expedition, a large portion of Bengal remained outside his kingdom. So, it is surprising that instead of conquering the remaining portions of Bengal, Bakhtiyar Khalji preferred to undertake such a dangerous campaign. There is no clear explanation about the motives underlying his project. It appears that Bakhtiyar Khalji's inordinate ambition or his desire to secure mastery over trade route from Tibet to Kamarupa, or his intention to discover a short-cut route to Turkistan over Tibet impelled him to undertake this expedition.

Bakhtiyar collected necessary information about the routes leading to Tibet by sending there a few detachments. Ali Mech was his guide to this invention. Before undertaking his Tibet expedition Bakhtiyar made adequate arrangements for the defence and administration of his kingdom. He created three big frontier governorships and posted Shiran Khalji, Ali Mardan Khalji and Husamuddin Iwaz Khalji at Lakhnur, Ghoraghat and Tanda respectively.

Bakhtiyar Khalji marched from Devkot with ten thousand horsemen up the river Bagmati in early 602 AH/1206 AD. Crossing the river over an ancient stone bridge he proceeded to the hills where, in a battle with the local people, he sustained heavy losses and decided to abandon the project. But the backlash was so hard that the return journey proved to be disastrous and he somehow reached Devkot with a little more than a hundred of his followers alive. At Devkot, Bakhtiyar Khalji fell seriously ill and when he was hovering between life and death, he was stabbed to death by Ali Mardan Khalji in 602 AH/1206 AD.

Achievements of Bakhtiyar

Bakhtiyar was a good administrator. He divided the kingdom into a number of districts and assigned them to the care of his principal nobles and military chiefs. They were entrusted with the duty of maintaining peace and order, collecting revenues, patronizing learning and culture and looking after the moral and material well being of the people. Following the traditional principle he took steps to read the Khutbah and to introduce coins in his name. He built a new capital on the site of Gaur and established two cantonment towns near Dinajpur and Rangpur. He named his administrative divisions ‘Iqta’ and the governor of an Iqta was designated as ‘Muqta’. He built numerous mosques, Madrasas and Khanqahs. Bakhtiyar's death was too sudden to enable him to pay any attention to the question of succession.

35
Heritage/Culture / Bengal under the Sens
« on: June 04, 2012, 10:40:25 AM »
Bengal under the Sens

The Sens ruled Bengal and much of the eastern part of the Indian Subcontinent through the 11th and 12th centuries.

The Sen Rulers:

•   Hemanta Sen (1070 - 1096 AD)
•   Vijay Sen (1096 - 1159 AD)
•   Vallal Sen (1159 - 1179 AD)
•   Lakshman Sen (1179 - 1206 AD)
•   Vishwa Rup Sen (1206 - 1225 AD)
•   Keshab Sen (1225 - 1230 AD)

The founder of the Sen Dynasty in Bengal was Samanta Sen. His son Hemanta Sen ruled as a feudal king under the Pala Emperor Ramapala. Hemanta Sen's son, Vijaya Sen (1098 AD--1160 AD), at first also ruled as a feudal king under Rampala, but he gradually consolidated his position in Western Bengal and ultimately laid the foundation of the independent rule of the Sens. Most probably, Vijaya Sen established his own supremacy in North and North Western Bengal by ousting the Palas sometime after 1152-53 AD. Vijaya Sen is also recorded to have extended his hold over Bihar in the west and Vanga (south-eastern Bengal) in the east. Vijaya Sen's first capital was in Vijayapura and his second at Vikramapura in the Munshigonj district in Bangladesh.

During the time of Vijaya Sen, Vallala Sen conquered Mithila.Vijaya Sen was succeeded by his son Vallala Sen (1160 AD--1178 AD). But Vallala Sen played a significant part in the downfall of the Pala Dynasty.
Vallala Sen was a great scholar and renowned author. He wrote the ‘Dana Sagara’ and ‘Adbhuta Sagara’.

Lakshmana Sen
Lakshmana Sen succeeded his father in 1178. His reign was famous for remarkable literary activities. He himself wrote many Sanskrit poems. His court contained renowned poets like Jaya Deva, the author of ‘Gita govinda’, Dhoyi, the composer of ‘Pavan Duta’ and ‘Sharana’.
The major blow to Lakshmana Sen rule came when the Muslim ruler Bakhtiyar Khalji advanced into Bengal and defeated him at Nadia in 1204 AD. Lakshama Sen lost control of north and north-west Bengal and for the final two years of his life he ruled only east Bengal.

After the death of Laksmana Sen in 1206 AD, his two sons Vishva Rupa Sen and Keshava Sen ruled east Bengal. But the death of Laksmana Sen marked the end of Sen rule in Bengal.

Caste system in Sen period
04 Caste in the society:
1. Brahman
2. Khaitrya
3. Baishaya
4. Shudra

Brahman
Brahmans are in the highest position in Hindu caste system. They are the religious elite of the society. Originally they are not local but migrated and settled down in Bengal during 4-6th century. Under the Sen period, Brahmans were patronized by the ruler. They are the leading position for religious and political issues. In all period, like Pala, Sen, Muslim, British era, Brahmans were mostly facilited.

Khaitrya
Khaitrya the second Hindu caste, their rank is after the Brahman.  As per the Rigbed, they originated from the arms of the God. Their chief duty is to ensure the safety and security of the state and its people. In other words, they were rulers and warriors. They are Aryan. Apart from ruling the country, they also acquired knowledge. Their rites and rituals are the same as those of other Hindus.

Baishya
Baishya is the third Hindu caste. In the caste system, farmers, traders and merchants were the level of Baisyas. They were Aryans and economically rich & developed because of their position.

Shudras
Shudras are the last caste in the Hindu society. Though they are the majority part of Hindu population, but their position is lowest in the caste. Shudras are designated to serve the higher casts. As per ancient caste, Shudas are untouchables and extremely poor. They have little access to sanitation, housing, health care, and other service related sectors.


36
Story, Article & Poetry / Re: সমকালীন ছড়া
« on: May 29, 2012, 10:19:32 AM »
তিন দোস্ত

ননির ছেলে ‘ভোট্কা ভাদু’
গনির পোলা ‘শুক্না সাদু’
পনির ব্যাটা ‘বাইট্যা মাদু’-

তিন দোস্ত যুক্তি করে
শিখতে গেল সাফাই-যাদু।

হাতে পেয়েই যাদুর কাঠি
করল শুরু লাঠালাঠি ॥

37
Heritage/Culture / Bengal Under the Pala Rule
« on: May 29, 2012, 08:44:48 AM »
Bengal under Pala Dynasty
(A short account on Pala ruler of ancient Bengal)

The Pala Empire is one of the important part of ancient Bengal. They ruled Bengal and Bihar for about four centuries from the middle of 8th century AD. Gopala is the founder of Pala dynasty.
The Pala Kings:
•   Gopala I (756 - 781)
•   Dharmapala (781 - 821)
•   Devapala (821 - 861)
•    Mahendrapala, Shurapala-I, Vigrahapala-I (861-866)
•   Narayanapala (866 - 920)
•   Rajyapala (920 - 952)
•   Gopala II (952 - 969)
•   Vigrahapala II (969 - 995)
•   Mahipala I (995 - 1043)
•   Nayapala (1043–1058)
•   Vigrahapala III (1058–1075)
•   Mahipala II (1075–1080)
•   Shurapala II (1080–1082)
•   Ramapala (1082–1124)
•   Kumarapala (1124–1129)
•   Gopala III (1129–1143)
•   Madanapala (1143–1162)
•   Govindapala (1162–1174)
Gopala is said to have been elected by local people who wanted him to bring an end to the disorder in Bengal. During his rule of about 25 years (756 – 781 AD) he ended the matsanyayam. He annexed almost the whole area of north and east Bengal, though south-east Bengal remained outside his control.

Dharmapala
Dharmapala (781-821 AD) is the second ruler of the Pala Dynasty of Bengal. He extended his kingdom from Bengal to Bihar. Dharmapala also extended his influence to north Indian region of Kanauj.
Dharmapala was a Buddhist. He is credited with the foundation of the ‘Vikramshila’ monastery, which was one of the most important Buddhist seats of learning in India from the 9th to the 12th centuries AD. Somapura Mahavihara at Paharpur was also a creation of Dharmapala. He followed a policy of religious toleration and mutual co-existence of different religions. Their religious policy was one the glorious legacies of Pala rule in Bengal.

Devapala
The third ruler of the Pala Dynasty was Devapala (821-861 AD). He is the son of Dharmapala. He had a long reign and he proved to be a worthy successor of Dharmapala. He conquered a large area of northern India as well as Orissa and Kamarupa.
Devapala was a devout Buddhist and a great patron of the religion. He is the founder of famous Buddhist seat of learning at Nalanda. He had a friendly relationship with the rulers of Buddhist kingdoms of South East Asia like Java.

Other Pala kings
The period of Pala dominance came to an end with the death of Devapala in 861 AD. The later kings were weak and often fought amongst each other for the right to succeed. For the next hundred years, the Pala Empire shrank in the face of foreign attacks, particularly by Chandela and Kalchuri kings.
The reign of Mahipala-I (995-1043 AD) brought back vitality and vigour. Mahipala-I gave a second lease of life to the Pala Empire. He succeeded in recapturing lost territories in northern and western Bengal and restored Pala dynastic rule. Mahipala-I captured a place in popular imagination by his public welfare works.
After the death of Mahipala-I the Pala Empire once again began to decline. Foreign invasions led to the breaking up of the empire into small pieces. There was also internal instability like the ‘Kaivarta’ Rebellion in north Bengal.
Ramapala (1082-1124 AD) succeeded the dynasty by recapturing northern Bengal. He extended his empire towards Orissa, Kamarupa and Madhyadesha of northern India.He tried to establish peace and discipline in Bengal and built new capital at Ramavati which is situated at Maldah. 

Pala Architecture & achievements
The brightest aspect of Pala glories was manifest in the field of different arts. Distinctive achievements are seen in the arts of architecture, terracotta, sculpture and painting. The ‘Somapura Mahavihara’ at Paharpur, a creation of Dhamapala, proudly announces the excellence of the architectural art achieved in the Pala period. It is the largest Buddhist ‘Vihara’ in the Indian subcontinent and the plan of its central shrine was evolved in Bengal.   UNESCO made it World Heritage Site in 1985. Its architectural plan had influenced the architecture of the neighbouring countries like Myanmar and Indonesia. A few Buddhist buildings in these countries, built in the 13th and 14th centuries, seem to have followed the Paharpur example.
The terracotta plaques recovered from Paharpur amply demonstrate the excellence of the art in the Pala period. These plaques have been recognised as unique creation of the Bengal artists. Specimens of Pala architecture are scattered over Bengal and Bihar. Dharmapala built the ‘Vikramasila Mahavihara’ at Patharghata in Bhagalpur district of Bihar and ‘Odantpur Vihara’ in Bihar.

Somapura Vihara and Vikramasila Vihara were acknowledged in the Buddhist world. These were two important learning centres in the period between 9th and 12th centuries AD.
Under the patronage of the Pala rulers many scholars came to these centres from far and wide. The Kings granted land and other supports for the upkeepment of the established for the scholars of said Viharas. The Buddhist Viharas in the Pala Empire played a significant role in the propagation of Buddhism in the neighbouring countries of Nepal, Tibet and Sri Lanka. Buddhist Pundits of Bengal contributed to the spread of Buddhist culture; among them the name of ‘Atish Dipankar’ stands out most prominently.

Atish Dipankar

Srijnan Atish Dipankar (980-1053) was the great ancient Buddhist scholar, religious preceptor and philosopher of Bengal. He was born at Munshiganj, Bangladesh and dedicated his life for the purpose of spreading education, serving humanity and preaching social reforms in the 10th century A.D. In the pursuit of knowledge he travelled as far as China and became a legendary figure for his spiritual attainment and devotion to the teachings of Gautama, the founder of Buddhism. Atish was a writer of more than one hundred books on Buddhism and other branches of knowledge. Atish Dipankar has been regarded as one of the worthy sons of Bangladesh.

(For further online support on this topic visit: http://www.banglapedia.org/httpdocs/HT/P_0037.HTM)
[/color]

38
Heritage/Culture / Ancient Janapads of Bengal
« on: May 23, 2012, 11:00:20 AM »
Ancient Janapads of Bengal

The historic term ‘Janapad’ means human settlement. The sources of ancient Bengal suggest that, in the earliest period Bengal was divided among various tribes or kingdoms which are known as the Janapadas. The ancient Janapadas are as follows:
 Banga
 Pundra
 Gaura
 Radha
 Somotate
 Horkel
The name of these Janapads ware purely descriptive and had no ethnic connection. These Janapads are inhabited by non-Aryan people.  The Hindu sources like : the Mohabharat and other Bhedic literature are the primary sources about these human settlements.

The Banga:
The Banga is an ancient human settlement situated in Eastern Bengal. But its geographical connotation varied in different periods of history. The Hindu literatures indicate that the Banga is sea-faring nation and its realm extended up to the sea. They also mentioned that this is an area where finest quality white & soft cotton fabrics were produced. There was a coastal area approachable from the sea in the territory of Banga. From the above mentioned references, Banga appears to be an area of south and southeastern part of present Bangladesh.

The Pundra  
The Pundra or Pundranagara is the earliest urban centre in Bangladesh, which goes back to the 4th century BC. The ruins of this have been identified at Mahasthan in Bogra district. It continued to be the headquarters of the administration of Maurya, Gupta and Pals. It was the capital of Pundrabardhan Bhukti under the Gupta rule. The famous China visitor’ Hiuen-tsang’' visited this place in the 7th century AD.

Pundra was situated on the western bank of the Karatoya. It was well connected with other parts of Bengal through land and river routes. For this connection it was an important centre of trade and commerce throughout the ancient period.
Pundra continued its importance after the Hindu regime and in the early Muslim period. The famous Muslim saint Shah Sultan Balkhi Mahisawar established his Khankah here.  

The Gauda
As an ancient human settlement, Gauda is the important Janopad of Bengal. The discovered evidence suggests that ancient Gauda located at coastal region. The famous & the first independent ruler of Gauda  is Shashanka. He ruled Gauda at the 7th century AD and his capital was the Karnasuborna which is located at present Murshidabad district. The Janapad of Gauda lay to the west of Bhagirathi and that its core area was Murshidabad.
In the 13th century, under the Sultans, Gauda denoted the entire area of the Muslim sultanate. Its capital also called Gaur or Lakhnaboti, located at present Chapai Nawabgonj district.

The Radha (ra-ro)
Radha is the ancient human settlement of Bengal. It is difficult to locate exactly its geographical position. But historical sources suggest that Radha is the west-southern part of ancient Bengal.
Howrah, Hughli and Burdwan in West Bengal are some areas of ancient Radha.

The Somotate
Samatate is an ancient territorial unit in ancient Bengal.  Chinese traveler Hiuen-tsang visited Samatat at 7th century AD. As per his account, it was the South-eastern part of Bengal and was a Buddhist cultural centre. The archaeological discoveries in the Lalmai-Mainamati area, it can now be stated with certainty that Samatata was formed at  Comilla-Noakhali areas and the adjacent parts of hilly Tripura.

The Harikel
Harikel is another geographical entity in ancient Bengal. But it is so difficult to locate it. Most of the evidence support that Harikel is the similar with our present Sylhet region. Another archeological evidence suggests its location at present Chittagong district. Harikel was situated by the side of Samatat.

39
Story, Article & Poetry / Re: সমকালীন ছড়া
« on: May 21, 2012, 06:41:01 PM »
নেতা

এইমাত্র শেষ হল তার ভাষন অতি মুল্যবান
দর্শকেরা বেজায় খুশি, কর্মীদের উৎফুল্ল প্রাণ
ধোলাই দিলেন ইচ্ছে মত
অন্য দলের জওয়াব যত
বয়ান তাহার থামল, যখন পাঞ্জাবিতে পড়ল টান ॥


40
Story, Article & Poetry / সমকালীন ছড়া
« on: May 17, 2012, 11:14:50 AM »
বৈশাখী ছড়া

এক.
বোশেখ এলেই বাঙালী বেশ
লুঙ্গি-শাড়ি-পান্তা
পার্কে বসে গুলতানী দেয়
মুন্না- রবিন-শান্তা;

পরের দিনেই গেঞ্জি টি-শার্ট
খাবার মেনু চায়নিজে
পান্তা খেয়ে বাঁধল ব্যামো
আগে তেমন খায়নি যে!

দুই.
আগমনী গানে আসে
বৈশাখী ভোর
মৌমাছি গুনগুন
বাগান মুখোর

পাতার আড়ালে ডাকে
কোকিলের সুর
সাদা রঙ বলাকারা
চলে কোন্ দূর!

এমন মজার ভোরে
ঘরে থাকা দায়!
মন টানে বোশেখের
সুরের মায়ায় ॥

41
Free Short Course Offered by DIU
After the Completion of HSC Exam, Keep in Touch with a Top-ranked Institution

Daffodil International University (DIU) is a leading private university in Bangladesh. DIU is fully aware of the requirements of the present society and provides quality education at moderate cost. The mission of the university is to turn out broadly educated and technology oriented graduates capable of attaining meaningful career and making positive contributions for the development of the nation. The University Grants Commission of Bangladesh rated the university at the top level in its raking of private universities. DIU arranges the following short courses for the HSC Examinee free of cost:

Course Details
• Basic Computer Application
(MS Word, MS Excel, MS Power Point, MS Access & Windows Operating System, Basic Knowledge on Computer, Internet, E-mail, Creating E-mail Account Via Yahoo Mail/G-Mail & Hot-mail etc, Chatting & Using Web Cam, Audio/Video, Free Software Download, Job Searching & Carrier Profile Submitting)

• English Speaking & Language
(Basic English Grammar, Word building, One to one interaction, Effective self introduction, Interview preparation, Framing question and replies, Conversation on current affairs, Overcoming hesitations, Confidence building etc)

Course Time & Duration
2 Month, 32 Hours. Course will be started from 02 June 2012,

Last Date of Registration: 26th May, 2012
To confirm your seat please complete your registration by 26th May, 2012.

Facilities
 Free of cost for the HSC examinee
 Friday, Saturday and evening class as per your convenient time
 Limited seat, which will be admitted on the basis of ‘First-in, First-Served’
 Class & practice in Daffodil’s rich IT & ELT Lab
 Certificate from the DIU after completion of the course

Contact for Admission:
Daffodil International University
House 04 & 06, Road 07, Sector 03, Uttara, Dhaka
Phone 8922010, 8922660, Cell: 01713493141, 01811458841
www.daffodilvarsity.edu.bd

you can follow us:
http://news.daffodilvarsity.edu.bd/index.php/component/content/article/220

42
রাজশাহীর সাঁওতালদের কথা
[/size][/color]
ছবির মত ছোট্ট আমাদের দেশ নানা কারনেই বিশ্ববাসীর মনোযোগ আকর্ষণ করে থাকে। যে সব বিষয় নিয়ে আমরা গর্ব করতে পারি তার অন্যতম হল, দেশবাসীর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। কিন্তু গ্লোবালাইজেশনের এই যুগে আমাদের সেই গর্বের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যও আজ অনেকটাই হুমকির মুখে। বিশেষ করে  â€˜আদিবাসী’ হিসেবে চিহ্নিত জাতিগোষ্ঠীগুলির সাংস্কৃতিক স্বকীয়তার প্রসঙ্গটি প্রায় বিপন্ন। রাজশাহী অঞ্চলের সাঁওতালদের সমাজ ও সংস্কৃতির বর্তমান অবস্থা সরেজমীন পর্যবেক্ষণ করলে একরাশ হতাশা এসে ভিড় করে। কী রকম অবহেলার মাধ্যমে যে তাদের সংস্কৃতি বিলুপ্ত হতে চলেছে! এদিকে কে দেখবে?
রাজশাহী তথা বরেন্দ্র অঞ্চলের অধিবাসীদের মধ্যে সাঁওতালদের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এদের দৈহিক গঠন বাঙ্গালী হিন্দু কিংবা মুসলমানদের মত নয়। গায়ের রঙ কালো, নাক চ্যাপ্টা, ঠোট মোটা, চুল কোকড়ানো এবং দেহের মাঝারী ধরনের উচচতা প্রভৃতি দৈহিক বৈশিষ্ঠ্য এদেরকে আদি  অস্ট্রিক জনগোষ্ঠীর প্রাক-দ্রাবিড় বলে চিহ্নিত করে দেয়। সাঁওতালরা বিভিন্ন গোত্রে বিভক্ত। সাঁওতালী ভাষায় এই গোত্রগুলিকে ‘প্যারিস’ বলা হয়। গোত্রগুলি হচেছ হাঁসদা, মুরমু (মুর্ম্মু), হ্যামব্রম, মারান্ডি, সোরেন (সরেন), টুডু, বাসিক, কিস্কু, বেশরা, চুঁড়ে, পাউরিয়া ও চিলবিলি। তাদের নামের সাথে গোত্র উল্লেখ থাকে। যেমন তাদের দু’একটি নাম- লুসিয়া হেমব্রম, রজনী মুর্ম্মু  ইত্যাদি। সাঁওতালরা জড় উপাসক। সূর্য তাদের প্রধান দেবতা। এছাড়াও তারা 'মবাংবুরো', 'বোঙ্গা' ইত্যাদি দেব দেবীর পূঁজা করে থাকে। তাদের কল্যাণ দেবতার নাম 'ধরোম'।
সাঁওতালদের ‘আদিবাসী’ বলা হলেও তাঁরা কিন্তু এ দেশের আদিবাসী নন। এঁদের ইতিহাস ও ‘আদিবাসী’ শব্দের সংজ্ঞা পর্যালোচনা করলে রাজশাহী অঞ্চলের সাঁওতাল, ওরাওঁ, পাহাড়িয়া, মাহালী, প্রভৃতি জাতিগোষ্ঠীর মানবমন্ডলীকে বাসস্থানগতভাবে আদিবাসী বলা যায় না। কারণ এঁদের আদি বাসস্থান এখানে নয়। ভারতের বিহার রাজ্যের সাঁওতাল পরগণার অর্ন্তগত রাজমহলের পাহাড়, ছোট নাগপুর, পালামৌ দামন-ই কোহ্ প্রভৃতি স্থানে তারা বসবাস করত। ব্রিটিশ শাসনামলে বাংলার এই অঞ্চলসমূহে রেলপথ স্থাপন, সড়ক নির্মাণ, চা বাগান তৈরী, হালচাষ প্রভৃতি কাজে তারা এদিকে আসতে থাকে। তা ছাড়া, রাজশাহী, মালদহ, বগুড়া, দিনাজপুর অঞ্চলের বড় বড় ভূ-স্বামী ও জমিদারগণ বন-জঙ্গল বিনাশ করে কৃষি জমি উদ্ধারের কাজে তাদের শ্রমিক হিসেবে নিয়ে আসতেন। কাজ শেষে এসব শ্রমিকদের কেউ কেউ তাদের মূল বাসস্থানে ফিরে গেলেও, কিছু লোক আস্তে আস্তে বসতি গড়ে তোলে। এখন বরেন্দ্র অঞ্চলে যে সাঁওতাল, ওরাওঁ, মুন্ডা, পাহাড়িয়া, হাজং প্রভৃতি জাতি বাস করছে, তারা ঐ সব শ্রমিক জনগোষ্ঠীর অধ:স্তন বংশধর।
তাহলে তাদের আদিবাসী কেন বলি? ব্যাখ্যাটা সাদামাটা। যেমন, প্রাচীন কাল থেকেই তারা পূর্ব-পুরূষদের  নিকট থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া জমিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করছে। নিজেদের সামাজিক ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি রক্ষায় তারা রক্ষণশীল। তাদের নিজস্ব ভাষা, আলাদা দৈহিক গঠনসহ অন্যান্য কিছু বৈশিষ্ট্য ও সত্তা রয়েছে, যা তাদেরকে সংখ্যাগরিষ্ট জনগোষ্টী থেকে পৃথকভাবে চিহ্নিত করতে সহায়তা করে। তাদের আচার-আচরন, অনুষ্ঠানাদি বিংশ শতাব্দীতেও আদিম পদ্ধতিতেই পরিচালিত হয়ে আসছে। তাই তারা আদি বাসস্থান ব্যতীত ‘আদিবাসী’ হিসেবে পরিচিত। সাধারণ অর্থে তাদের উপজাতিও বলা হয়ে থাকে। আদিবাসী কি উপজাতি সেটা বড় কোন বিষয় নয়। তারা আমাদের ভাই, প্রতিবেশী-বন্ধু। তারা বাংলাদেশের নাগরিক। তাদের সমস্যা নিয়ে কথা বলা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।
দুঃখজনক হল যে, সাঁওতালদের ইতিহাস বঞ্চনার ইতিহাস। ইংরেজ সরকার ও জমিদারগণ নিজেদের প্রয়োজনেই সাঁওতালদেরকে বরেন্দ্র অঞ্চলে এনে কাজে লাগিয়েছিল। তবে ব্যাপকভাবে তারা সাঁওতাল পরগণাতেই বসতি স্থাপন করেছিল। তারা বন জঙ্গল কেটে জমি বের করত।  ঐ সময় খাদ্য ও নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে তারা বাংলাদেশের বরেন্দ্র এলাকায়ও চলে আসে অনেকেই। এভাবে রাজশাহী ও দিনাজপুর অঞ্চলে তারা ব্যাপকভাবে বসতি গড়ে তোলে। কিন্তু অত্যাধিক পরিশ্রমী হওয়া সত্বেও সাঁওতালরা বরাবরই থেকেছে অসহায় ও দরিদ্র। কেননা বরেন্দ্র এলাকার জমি চাষযোগ্য করার পরও তারা জমির মালিক হতে পারেনি খাজনা ও জমিদারদের কারণে। জমি চাষযোগ্য হলেই জমিদার খাজনা চেয়ে বসত, এবং সাঁওতালরা তখন অন্য জঙ্গল পরিস্কার করে জমি তৈরী করত, বসতি স্থাপন করে চাষবাস শুরু করত। এভাবেই বরেন্দ্র এলাকার হাজার হাজার একর জমি তাদের প্রচেষ্টায় চাষযোগ্য হয়েছে কিন্তু সাঁওতালরা দারিদ্রের তিমিরেই রয়ে গেছে।   
বাংলাদেশের অন্যান্য সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীর মতই সাঁওতালদের সংখ্যা নিয়েও অ¯পষ্টতা আছে। স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ ও ১৯৮১ সালের আদম শুমারীতে আদিবাসীদের আলাদাভাবে গণনা করা হয়নি। তাদের জেলা ভিত্তিক কোন হিসাবও দেওয়া হয়নি। তবে ১৯৯৬ সালের বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যূরো প্রদত্ত তথ্য অনুসারে সমগ্র বাংলাদেশে সাঁওতাল পরিবারের সংখ্যা ৪০,৯৫০ টি এবং মোট জনসংখ্যা ২,০২,৭৪৪ জন।
বর্তমান রাজশাহী জেলায় সাঁওতালদের সংখ্যা নিয়ে সরকারী ও বেসরকারী পরিসংখ্যানের মধ্যে বিরাট পার্থক্য আছে। বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা, খ্রিস্টান মিশনারী সংস্থা প্রদত্ত তথ্যকে এক্ষেত্রে গ্রহণযোগ্য বলে মনে হয়। কারণ, তারা মাঠ পর্যায়ে কর্মতৎপর। ১৯৮৫ সালে আদিবাসী উন্নয়ন সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত এক প্রতিবেদন অনুযায়ী দেখা যায় রাজশাহী জেলায় সাঁওতাল সংখ্যা ৪১,০০২ জন।
বরেন্দ্র অঞ্চলের সাঁওতালরা কি সনাতন ‘সাঁওতাল’ আছে? এর খুব সংক্ষিপ্ত এবং অতিশয় সত্য উত্তরটি হচ্ছে -না। শুধু সাঁওতাল সম্প্রদায় নয়, বরেন্দ্র এলাকার আদিবাসীদের একটি বিরাট অংশ খ্রিস্ট ধর্ম গ্রহণ করেছে খ্রিস্টান মিশনারীদের হাতে পড়ে। সেই ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর সময় থেকেই খ্রিস্টান মিশনারীরা টার্গেট নির্ধারণ করেছিল এদেশের উপজাতীয় লোকদের। বিশেষ করে নিুবর্ণের মানুষ, অভাবগ্রস্থ, কোন মারাত্বক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের (যেমন, কুষ্ঠ রোগীদের)। বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের আদিবাসী লোকজন, মধ্য অঞ্চলের (গারো পাহাড় অঞ্চলের) উপজাতীয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের আদিবাসীরা মিশনারীদের লক্ষ্য বস্তুতে পরিণত হয়েছিল। এসব জেলায় অপেক্ষাকৃত ব্যাপকভাবে খ্রিস্টান জনসংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজশাহীর সাঁওতালদের অবস্থাও তাই। খ্রিস্টান মিশনারীরা তাদের মাঝে ধর্ম প্রচার করতে যেয়ে তাদেরকে নানাবিধ আর্থিক সুবিধা দিয়ে থাকে। অতীতেও দিয়েছে, এখনও দেয়। যদিও এ সকল সুবিধার খুব সামান্ন অংশই দরিদ্র সাঁওতাল পরিবারগুলি পেয়ে থাকে। তারপরও দেখা গেছে, মিশনারীদের কল্যাণে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও নিরাপত্তার কারণেই বরেন্দ্র অঞ্চলের সাঁওতালরা ব্যাপকভাবে খ্রিষ্ট ধর্ম গ্রহণ করছে।
ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর আগ্রহে ইংরেজ সরকারের প্রণীত ১৮১৩ সালের সনদ আইনের মাধ্যমে এদেশে প্রথম খ্রিষ্ট ধর্মে   ধর্মান্তর কার্যক্রম শুরু হয়। তার দশ বছর পর ১৮২২ সালের হিসেবে দেখা যায় এদেশে ধর্মান্তরিত খ্রিস্টান সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪০৩ জনে। সেই  থেকে এদেশে খ্রিস্টান জনসংখ্যা বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। ১৯৪১ সালে বাংলায় খ্রিস্টান সংখ্যা ছিল ১ লক্ষ ১১ হাজার ৪২৬ জন। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় তৎকালীন পূর্র্ব-পাকিস্তানে ১৯৫১ সালে খ্রিস্টান সংখ্যা ছিল ১,০৬,৫০৭ জন এবং ১৯৬১ সালে তা দাঁড়ায় ১,৪৮,৯০৩ জনে।
১৮৮১ সালে রাজশাহী জেলায় (বর্তমান রাজশাহী, নওগাঁ, নাটোর ও নবাবগঞ্জসহ বৃহত্তর রাজশাহী জেলা)  খ্রিস্টান সংখ্যা ছিল মাত্র ১২১ জন। ১৯৩১ সালে এই সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ১৫২৯ জনে, ১৯৬১ সালে ৮৩০৩ জন। বরেন্দ্রের অন্য জেলাগুলিতেও একই হারে ধর্মান্তর প্রক্রিয়া চলতে থাকে। এভাবে বরেন্দ্র এলাকায় খ্রিস্টান জনসংখ্যা ক্রমবর্ধমান হারে বেড়েই চলেছে। ধর্মান্তরিতদের সিংহভাগই রাজশাহীর আদিবাসী পরিবারের, বিশেষ করে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের।
ধর্মান্তরিত হওয়ার কারণে সবচেয়ে বেশী প্রভাবিত হয়েছে আদিবাসীদের ধর্ম ও তাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। খ্রিস্টান হওয়ার কারনে তাদের পূর্বের ধর্মমত ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য বাদ দিয়ে তারা খ্রিস্টীয় জীবনযাত্রার আলোকে নিজেদের ঢেলে সাজিয়েছেন। প্রতিটি সাঁওতাল পল্লী ধর্মীয় কারণে আজ দ্বিধা বিভক্ত। একদল সনাতন বিশ্বাসী সাঁওতাল। অন্যদল নব্য  খ্রিস্টান সাঁওতাল। প্রায় প্রতিটি সাঁওতাল পল্লীতে গীর্জা নির্মিত হয়েছে। রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী থানার দেওপাড়া ইউনিয়নের একটি সাঁওতাল পল্লীর একটি গবেষণা চিত্র এখানে উল্লেখ করা যায়। পল্লীটিতে ১৩২টি সাঁওতাল পরিবারের মোট সদস্য সংখ্যা ৬৭৮ জন। জরীপে দেখা গেছে তাদের মধ্যে চিরায়ত সাঁওতাল এখন ৪৩৪ জন অর্থাৎ ৬৪% আর  খ্রিস্টান হয়েছে ২৪৪ জন অর্থাৎ ৩৬%। এই চিত্র অন্যান্য সাঁওতাল বসতিতেও লক্ষ্যণীয়।
এ অঞ্চলের আদিবাসীদের মধ্যে খাবারের ব্যাপারে মুসলমান ও হিন্দু সমাজের প্রভাব আছে। যেমন, অনেক সাঁওতালই গরুর গোস্ত খায় না, আবার অনেকে শুকুরের গোস্ত খায়না কিন্তু গরুর গোস্ত খায়। তবে ধর্মান্তরিত খ্রিস্টান পরিবারগুলিতে এসবের কোন বাছ-বিচার নাই। পোশাকের ক্ষেত্রে দেখা গেছে সনাতনদের চেয়ে ধর্মান্তরিতরা বেশ পরিপাটি পোশাকে থাকে। নতুন প্রজন্মের সাঁওতাল তরুণেরা শার্ট-প্যান্ট, জুতা, ক্যাপ ইত্যাদি পরিধান করছে। বিয়ে-শাদির ক্ষেত্রে তাদের রীতি-নীতিতে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। বিয়ের প্রচলিত সনাতন রীতি আর মানছেন না। তাদের বিয়ে গীর্জাতেই অনুষ্ঠিত হচেছ। অবশ্য ধর্মান্তরিত অনেক সাঁওতাল গীর্জায় বিয়ে করলেও বাড়ীতে এসে সনাতন নিয়ম কানুন পালন করে থাকে। এভাবে ধর্মান্তর তাদের নিজস্ব উৎসব-অনুষ্ঠানের ধরণ ও ধারা পাল্টে দিয়েছে। ধর্মান্তরিতরা এখন বড় দিনের উৎসব পালন করছে। খ্রীস্টধর্ম গ্রহণ করার ফলে তারা শিক্ষা, চিকিৎসা, অর্থ সকল ক্ষেত্রেই উন্নততর সুবিধা পাচেছ বটে কিন্তু তাদের সনাতন সংস্কৃতি হারিয়ে যাচেছ।
আমি কোন নৃতত্ববিদ নই। বাল্যকালে দাদার আখের জমিতে দল বেঁধে এঁদের কাজ করতে দেখতাম। অসম্ভব রকমের সরলতা এঁদের ভেতরে খুঁজে পেতাম। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় সুযোগ পেলেই আদিবাসী পল্লীগুলিতে ঘুরতে যেতাম। এঁদের জন্য কিছু করতে ইচ্ছে করত। আজ কত বছর পার হয়ে গেল! সাঁওতালরা তেমনই আছে। অভাব দূর করতে গিয়ে তারা ধর্ম বিসর্জন দিয়েছে। হারিয়েছে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য। এটা আমাকে খুব নাড়া দেয়।
রাজশাহী অঞ্চলের প্রত্যন্ত অনাবাদি গ্রামাঞ্চলের এই জনগোষ্ঠী  তো এই মাটিতে বেড়ে ওঠা আর দশ জনের মতই সাধারন মানুষ। সমান ভোটাধিকার রয়েছে তাদের । অবশ্য অনেকেই তাদের নিয়ে রাজনীতি করার চেষ্ঠা করেন। কিন্তু তাদের ধর্ম ও সংস্কৃতি নিয়ে এদেশের কেউ মাথা ঘামায় বলে মনে হয় না। তাদের সংস্কৃতির বর্তমান এই সংকটকালে এখন যেমন সবাই নিশ্চুপ, অতীতেও তাই ছিল। অতীতে হিন্দু সম্প্রদায় তাদের আত্মীকরণের চেষ্টা করেনি, মুসলমান সম্প্রদায়ও তাদের ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করতে সাহস দেখায়নি। হিন্দু-মুসলমান সম্প্রদায়ের এই উপেক্ষিত মনোভাব এবং শোষণ, বঞ্চনা, নিপীড়ন-নির্যাতন থেকে নিস্কৃতি পাওয়ার নিশ্চয়তা বোধ থেকে সাঁওতালরা খ্রিষ্ট ধর্ম গ্রহণের দিকে ঝুকছে। তারা ধর্মান্তরিত হচ্ছে, সঙ্গে বিলুপ্ত হচ্ছে এদেশের সাংঙ্কৃতিক ইতিহাসের এক গৌরবোজ্জ্বল ধারা। এমন একদিন বেশী দূরে নয়, যে দিন বরেন্দ্র অঞ্চলে সনাতনপন্থী একজন সাঁওতাল খুঁজে পাওয়াও দুস্কর হবে।


43
Daffodil International University (DIU) arranges the following short course for the students and professionals to face the challenges of the worldwide growing needs of the field of Internet Based Outsourcing.

Internet Based Outsourcing
(Advance Course for Online Money Earning)
How to earn more than 10,000 to 50,000 Tk. per month with Data Entry Program, From Where & How One Can Get Data Entry Works/Job)
Duration: 2 Months (32 Hours)
Cost: Tk. 5000

Contact for Admission:
Daffodil International University, Uttara Campus: House 04 & 06, Road 07, Sector 03, Uttara, Dhaka
Phone 8922010, 8922660, Cell: 01713493141, 01811458841
http://www.daffodilvarsity.edu.bd

44
Professional IT courses @ DIU Uttara Campus
Daffodil International University is a leading private university in Bangladesh. DIU is fully aware of the requirements of the present society and provides quality education at moderate cost. The mission of the university is to create broadly educated and technology oriented graduates capable of attaining meaningful career and of making positive contributions for development of the nation. The University Grants Commission of Bangladesh rated the university in the top layer in its raking of private universities. Considering Bangladesh & the Global context, DIU arranges the following computer short courses for the students and professionals to face the challenges of the worldwide growing needs of this field. These courses will bring you the latest in social networking, certifications content, games, blogs, discussion forums and more!

CCNA Certification (802-640)
Cisco Certified Network Associate (CCNA) curriculum includes basic mitigation of security threats, introduction to wireless networking concepts and terminology, and performance-based skills. This also includes the use of these IP,  Subnetting, VLSM, Static Routing, Dynamic Routing, Frame Relay, VLAN, Inter-VLAN Routing, NAT, PAT, DHCP,  Ethernet, ACL, etc.   
Duration: 2 Months (36 Hours)
Cost: TK. 8000

ISP Setup with Linux Network Administration
(Basic file management commands, understanding users and groups, changing ownership and permission, install and working with RPM packages, setting up user authentication, IP subnetting.
Configuration of all servers like: Web server, Mail server, Proxy server, DNS server, NTP server, Samba server, FTP server, NIS and NFS server etc.
ISP setup with Linux and troubleshooting, Monitoring system using SNMP and MRTG, configuring and implementing firewalls).   
Duration: 3 Months (60 Hours)   
Cost: TK. 7500

Internet Based Outsourcing
(Advance Course for Online Money Earning)
How to earn more than 10,000 to 50,000 Tk. per month with Data Entry Program, From Where & How One Can Get Data Entry Works/Job)   
Duration:2 Months (32 Hours)   
Cost: Tk. 5000

Basic Application Course
(MS Word, MS Excel, MS Power Point, MS Access & Windows Operating System)   
Duration:2 Months (32 Hours)   
Cost: Tk. 2500

Web Design & Development
(HTML & JavaScript, Practice for HTML on Macromedia Dreamweaver Software & Using WAMP Server)
Duration:2 Months (32 Hours)
Cost: Tk. 3500

Graphics Design
(Adobe Photoshop, Adobe Illustrator)   
Duration:2 Months (32 Hours)   
Cost: Tk. 3500

Internet & E-mail
(Basic Knowledge about Computer, Internet, Intranet & Extranet, E-mail, Configuration Internet Connection Through Different Kinds of Modem, Creating E-mail Account Via Yahoo Mail/G-Mail & Hot-mail etc, Chatting & Using Web Cam, Audio/Video, Free Software Download, Job Searching & Career Profile Submitting)   
Duration:2 Months (32 Hours)   
Cost: Tk. 2000

Facilities:
 * Friday, Saturday and Evening Class as per your convenient time
 * Separate Batch for Students and Professionals
 * Limited seat, which will be admitted on the basis of ‘First-in, First-Served’
 * Class & practice in University rich IT Lab
 * Job opportunities after successful completion
 * We provide all course materials & software

Contact for Admission:
Daffodil International University, Uttara Campus: House 04 & 06, Road 07, Sector 03, Uttara, Dhaka
Phone 8922010, 8922660, Cell: 01713493141, 01811458841
http://www.daffodilvarsity.edu.bd


45
Dear Concern
Daffodil International University (DIU) arranges the CCNA Certification (640-802) Course at its Uttara Campus for the students and professionals to face the challenges of the worldwide growing needs of this field.

CCNA Certification (640-802):
Cisco Certified Network Associate (CCNA) curriculum includes basic mitigation of security threats, introduction to wireless networking concepts and terminology, and performance-based skills. This also includes the use of these IP,  Subnetting, VLSM, Static Routing, Dynamic Routing, Frame Relay, VLAN, Inter-VLAN Routing, NAT, PAT, DHCP,  Ethernet, ACL, etc.

Duration: 2 Months, (36 Hours)

Cost: TK. 8000

Facilities:
* Friday, Saturday and Evening Class as per your convenient time
* Separate Batch for Students and Professionals
* Limited seat, which will be admitted on the basis of ‘First-in, First-Served’
* Class & practice in University rich IT Lab
* Job opportunities after successful completion
* We provide all course materials & software

Contact for Admission:
Daffodil International University, Uttara Campus: House 04 & 06, Road 07, Sector 03, Uttara, Dhaka
Phone 8922010, 8922660, Cell: 01713493141, 01811458841
http://www.daffodilvarsity.edu.bd

Pages: 1 2 [3] 4