Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Badshah Mamun

Pages: 1 2 3 [4] 5 6 ... 126
46
Rickshaw driver's daughter Manya Singh wins Miss India runner up


Facebook Short Video Clip

Collected

47
Scholarship / The art of writing a personal statement
« on: February 16, 2021, 01:14:32 PM »
The art of writing a personal statement

A personal statement is essential for applying to foreign universities. But there exists only a few detailed material on the internet. In this regard, a guidance on the four most common questions will benefit the aspirant students


A personal statement is a document demanded by almost every foreign university in its application procedure. The document highlights the achievements, goals, strengths, personality and experience of the candidate by which a university assesses whether he/she is suitable for their desired course.

A better personal statement can not only put you ahead of other applicants with higher academic results but can also, at times, guarantee you a place at universities where you do not meet the requirements for previous academic results, by a little margin.

With 70,000-90,000 Bangladeshi students going abroad for higher education each year and with few materials found on the internet containing detailed information on how to write a personal statement, the aspirants will benefit greatly from the guidance provided herein on the four most common questions in a personal statement.

Question 1: What makes you a suitable candidate for this course?

Many candidates readily assume that the answer to this question revolves around simply outlining the skills that have been acquired from his/her previous academic and extracurricular activities. What is actually needed is that he/she to explain how these skills have been developed and how these are related to the demands of the intended course.

For instance, one would not provide a satisfactory answer in this section if he/she just writes that "I have developed research skills from my previous academic commitments". Instead, he/she should opt for saying that "at the undergraduate stage, I was required to undertake several essay-based assignments which required me to conduct widespread research on contemporary issues to provide certain recommendations, and thus these have improved my research skills. I can use this experience of mine to find comprehensive and creative arguments which would place me in a better position to score higher marks in the course".

The skills that the institutions seek in this section vary from subject to subject, but some of the common skills other than the one mentioned above are as follows: (i) Teamwork (ii) Communication (iii) Ability to work under pressure (iv) IT literacy (v) Creative problem solving.

Do not forget to mention any recognition that has been awarded to you for excellence in any stage of your academic and professional life in this section. For example, you may refer to a scholarship that has been awarded to you for your academic results. Again, remember not only to mention it but to go further and do so in a way that addresses the question. You can state that you have been awarded a scholarship for outstanding results, showing how sincere you are and how refined your skills are, which increases your chances of passing the course with flying colours.

Question 2: Why do you want to study at this university?

It is very easy to be tricked into thinking that this question can be successfully answered with general statements only. However, it will occur to you with a little thought that this question has been designed to put your research skills to test.

Before you decide on answering this question, take time to engage in research about the global ranking of the institution and what area(s) the institute excelled in the most. For instance, if the university you have chosen is ranked tenth in the QS World University Rankings, mention that in this section along with pointing out that it is so highly ranked because of its impeccable record in terms of employer and academic reputation.

Question 3: Why have you chosen this course?

In order to answer this question, an overall discussion of your chosen subject may not suffice. The answer expects you to explore your achievements in the field for which you want to enlighten yourself further in a particular course.

Reasons for choosing a course entails a brief view about the whole subject, your future endeavours in relation to this course, the benefits of undertaking the course, the facilities that your society or country will offer you after you get the degree title of that particular course, etc.

It is wise at this stage to mention if any of the course teacher's areas of interest in research matches with yours and if so, how this will benefit you in the future. For instance, if you apply for a specialized postgraduate course, you can state here that "this degree will increase your chances of being employed in higher positions in x, y, and z ways" to show how you could benefit from choosing this course.

Question 4: Where do you see yourself in five years?

This question can be answered widely. However, you need to explain precisely about your ambition and job interest. In order to state your career prospective, make sure to research meticulously about the platform that you want to see yourself in. Your plans must be realistic and must portray long-term planning which will ultimately lead you towards your ambition. Being able to portray your sense of commitment and being enthusiastic should be your main objectives while writing this answer.

As clear and concise answers are what one looks for in a personal statement, go straight to the point while answering the questions in a personal statement. Also, be sure to check for any additional information regarding the personal statement provided on the University's website. This will enable you to get an idea of key documentation issues, such as word limit, fonts, line spacing, etc., accepted by the University you are applying for.

Furthermore, do not use any information (which surprisingly many students do to get themselves into trouble) for which you will not be able to provide evidence if it is subsequently requested by the University for cross-checking in an attempt to make yourself stand out from others. It is imperative that adhering to the above suggestions you also oversee your grammatical and spelling mistakes. To avoid such minor mistakes that can affect your chances of success greatly, you can use online instruments such as Grammarly or get your draft checked by some of your teachers.

Deena Afroza Aziz is pursuing an LLM from the Eastern University, Bangladesh.

Arafat Reza is an LLB graduate from BPP University, UK.

Mehbeez Binte Matiur is an Honor's 3rd Year student at Department of Criminology, University of Dhaka.

Source: https://tbsnews.net/feature/pursuit/art-writing-personal-statement-200032?fbclid=IwAR1RhNgvpePrNjBJqbhWKE_VaRY4bgBTbihvt2oEODz9P_EiV12Kp2BG8uA#.YCYLnDc0nFI.messenger

48
Career Guidance / Seek A Career, Not A Job
« on: February 16, 2021, 01:12:31 PM »
Seek A Career, Not A Job


Business education has proliferated in the country with over a thousand independent management schools, apart from more than 900 state universities, that offer similar courses. Similarly, education in the field of commerce is now available in over 20,000 colleges and universities.

Sectors like retail (online and offline), pharma and healthcare, energy (conventional and non-conventional), food and beverages and Micro, Small and Medium Enterprises (MSMEs) hold employment promises.

These sectors are drivers of revival for the global economy that saw a 5 per cent contraction last year from a total size of $80 trillion. The Indian economy, too, suffered a 23 per cent contraction during the year.

A quick survey with the placement offices of a few universities shows the following trends. The top six sectors employing freshers from B-Schools are edutech, logistics and supply chain, banking and insurance, telecommunications, e-commerce or retail, and analytics and consulting.

Among tech enterprises, BYJU’s, Jaro, Toppers and Extramarks are hiring heavily, while DTDC and SafeExpress are the top logistics recruiters. Bank of America, ICICI, Aditya Birla and JR Laddha have been big recruiters in the banking and finance space, along with microfinance organisations.



Reliance Jio takes the cake among telecoms and Amazon, e-kart and Flipkart are leading in the e-commerce segment. AC Nielson and Mphasis are major data and consulting recruiters. We saw 94 per cent of the final placements with a package in the range of `3.5 to `10 lakh per annum. Edutech is seen offering the highest package followed by data analytics and consultancy companies.

On the jobs front, the first lesson to be learnt is that one should seek a career and not just a job. It should be the manifestation of the chosen career at a point in time. Traditionally, business education has been plagued with the following challenges:

1. It is often delivered through face-to-face concepts and theories of management or usual taxation, accounting laws and principles.

2. Business education is delivered by people, who have rarely practised what they are teaching from management books, largely written in the West.

3. It is evaluated through a semester-end or an annual written examination, which is the base of scoring, awarding degrees, and consideration for jobs.

4. It is heavily biased towards jobs in large corporations, indigenous or multi-national corporations, while in reality, the actual engagement is required in MSMEs, small start-ups and entrepreneurial ventures.

The pre-pandemic era has necessitated many changes, which several universities have started adopting. The pandemic has only redefined education. Trends that will match the expectations in the next decade are:

1. Business education will begin with a flipped-classroom model, where students would be provided with multiple resources, including open-source and proprietary resources of the mentors. These could be videos, podcasts, PDFs, book chapters, case studies, info-graphics, interviews, or slideshows.

2. Students are expected to develop asynchronous self-learning muscles and take up doubts and challenges in synchronous sessions, which could be digital or physical, or both ­— PhyGital - in class and online.

3. The third level in business learning could be solving problems, critical thinking exercises with simulated situations to examine comprehension of the subject concerned, and application of the insights.

4. Students could be asked to develop their own case studies based on their areas of interest.

5. After an initiation to overall subject and its practice, the student of management could take up a broad specialisation area which, in the first level, could be marketing, human resources, finance and systems. For commerce students, it could be advanced accounts, taxation, actuarial sciences, or business economics.

6. At masters’ level, the specialisation could be in niche areas. In management, it could be in retail, services, leadership, budget, project, banking and insurance, learning and development, brand, rural or agri-business, data analytics, energy, logistics and supply chain, IT and technology, telecom, entertainment and media, social business, development, pharmaceuticals, strategic management, export-import or sales.

Similarly in commerce, students could go deep into one domain within taxation or accounting.

7. It is also important to know quantitative aspects often neglected in traditional management education, like, econometrics, statistics, quantitative analyses software, big data analytics and IT applications. A couple of courses covering these would be significant.

8. It is important to develop a few case studies of success or failure in the areas of niche specialisation. For a hands-on experience, a couple of life projects and one major full-time internship in the chosen niche area is necessary. Students could have a low-engagement, online internship running along with the academic programme, while managing time, and using the weekends well.

9. Higher emotional intelligence along with the ability to be a team-worker and lead from a remote location, when required, are the basic professional skills and work ethics that are required.

10. Having a minor specialisation in ITeS, brand communication, corporate or cyber law would be an advantage and differentiator in a market full of generalists with plain vanilla BBA or MBA degrees.

Reinvent yourself. Redefine your career goals, restrategise your journey, refocus on specifics, re-learn after much unlearning, and reinvigorate the economy, post-pandemic for taking the right lessons. That’s the mantra in the B-schools of India.

Prof Ujjwal K Chowdhury
Pro-Vice Chancellor
Kolkata-based Adamas University

Source: https://www.outlookindia.com/outlookmoney/magazine/story/seek-a-career-not-a-job-632

49
The Importance Of Technical Optimization For SEO

Search engine optimization (SEO) continues to be an essential part of any digital marketing strategy. As much as we like talking about the newest and latest digital marketing tactics, SEO is a reliable mainstay and will be so for the foreseeable future.

When designing a comprehensive SEO strategy, however, most digital marketers spend their time on several things. Choosing high-ranking keywords to target is obviously an important step. Integrating these into high-quality pieces of content may be your next goal. At the same time, building backlinks is also critical.

All these on-page and off-page SEO strategies are necessary elements. However, technical search engine optimization is equally important to create strong SEO. Focusing on your website architecture and ensuring that Google can properly crawl your website goes a long way in allowing your website to rise in the search rankings.

Why Technical SEO Is Important

There isn’t one overarching plug-in or hack that will help your website have the “perfect” technical SEO. That said, there are a variety of things you can do that, collectively, can significantly improve your technical SEO and put you ahead of the competition.

Why do you want to prioritize technical SEO? Well, because technical SEO is what allows search engines like Google to know that you have a website of high value. This is important because it can prompt the search engines to rank you higher. After all, they primarily want to present users with the best possible results for their chosen keywords, and technical SEO is a way to ensure your website meets the requirements.

If Google prioritized webpages that were slow, nonresponsive or confusing to navigate, Google users would be more likely to take their search queries somewhere else. So if your website loads quickly, has no dead links and is secure, Google’s crawlers will give it an extra boost in search rankings.

The reasons for this are evident. Creating a strong technical foundation for your website will go a long way in satisfying and delighting your users. Search engine crawlers take notice and prioritize your website over others who offer slower and buggier experiences.

Technical SEO: Some Tips And Advice

Technical SEO is definitely something that you should take seriously. So, what are some of the things that you can do to raise your technical SEO? While it would be impossible to list all of them in this article, here are some of the most important things that you can do.

First, make sure that your website is optimized for mobile devices. This is a big one, because more users are now browsing the internet on their smartphones. Google and other search engines, therefore, prioritize websites that offer a great mobile browsing experience. Luckily, search engines like Google have released mobile-friendly tests that can help you optimize your mobile website.

Website speed also plays an important role. To get a basic audit of your website’s current speed, you can use a tool like Pingdom or Google PageSpeed Insights. With that baseline, make sure that you are doing several key things. Think about enabling browser caching, optimizing your website’s images and enabling compression on your site. These are small steps, but put together, they can make your website much faster.

Next, make sure that you include an SSL certificate on your website. SSL (secure sockets layer) certificates provide extra security for visitors to your website. It protects data, confirms identities and improves customer trust. Therefore, by purchasing an SSL certificate, you will not only improve your SEO ranking, but you will add additional security to your website. It’s a no-brainer, so if you haven’t already obtained an SSL certificate, don’t hesitate to do so.

Finally, submit your sitemap to search engines. Sitemaps are essentially lists of pages on your website. They are critical because they let search engines find and index your website. Fortunately, sitemaps aren’t that difficult to create. For instance, if you use WordPress as your content management system, you can easily find a plug-in that will create a sitemap for you. Once your sitemap is ready, submit it to Google Search Console and Bing Webmaster Tools. Doing this makes it easier for these search engines to crawl your website.

Rising Through The Rankings


Technical SEO isn’t going to automatically get you to the top of Google or Bing. That said, ignoring technical SEO will guarantee that doesn’t happen. A slow or buggy website is going to be punished by search engines, thereby preventing you from achieving your digital marketing goals.

Because of this, we encourage you to take technical SEO seriously. Audit your website, and implement some of the suggestions mentioned above. Ultimately, they will go a long way in strengthening your website’s technical SEO.

Source: https://www.forbes.com/sites/deloitte/2021/01/27/what-the-vaccine-wont-solve/?sh=5f44b8ce1ccb

50
Famous people Quote / Re: Quotation by Famous leader
« on: February 16, 2021, 12:19:15 PM »

51
Famous people Quote / Quotation by Famous leader
« on: February 16, 2021, 12:18:59 PM »


52
Politician's Quote / oliticians are the same all over.
« on: February 16, 2021, 12:17:18 PM »

Politicians are the same all over. They promise to build bridges even when there are no rivers.

Nikita Khrushchev

53
Religious Quotation / Religion is the clearest telescope
« on: February 16, 2021, 12:15:26 PM »

Religion is the clearest telescope through which we can behold the beauties of creation, and the good of our Creator.

WILLIAM SCOTT DOWNEY

54
সফল উদ্যোক্তা হতে যেখানে ‘না’ বলতে হবে


নতুন নতুন যখন একটা ব্যবসা শুরু করা যায়, তখন উদ্যোক্তাদের মধ্যে একটা আদর্শ অবস্থা খোঁজার তাড়না থাকে। মনে হয় যেন অনেক কিছু করে ফেলতে হবে, কিন্তু বাছবিচার ছাড়া অনেক কিছু একসঙ্গে করে ফেলার ফল আখেরে খুব ভালো হয় না।

যেসব উদ্যোক্তা জীবনে সফল হন, তাঁরা কাজের বিষয়ে গোছানো হন এবং লক্ষ্যেও একমুখী থাকেন। সফল উদ্যোক্তা হতে হলে কাজের বাহুল্য কমিয়ে ফেলতে হবে। উদ্যোক্তাদের সহায়তাকারী ওয়েবসাইট এন্ট্রাপ্রেনিউর জানিয়েছে, ঠিক কোন কোন জায়গায় ‘না’ বললে উদ্যোগকে বাঁচানো যায় লোকসান থেকে।

১. অতিরিক্ত কর্মী নিয়োগকে না বলুন
উদ্যোক্তাদের একটি সাধারণ ভুল হচ্ছে দ্রুতই অনেক টাকা খরচ করে ফেলেন। তার একটি হচ্ছে আগাম ও অপ্রয়োজনীয় নিয়োগ। হতে পারে একটা সফল উদ্যোগে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কর্মী লাগে। তবে তাঁরা কি একদম প্রথম দিনেই এত কর্মী নিয়োগ দিয়েছিলেন? নতুন উদ্যোগের উচিত প্রত্যেক কর্মীর প্রয়োজনীয়তা যাচাই করা এবং কোনো কাজ যদি একান্তই কোনো পুরোনো কর্মী দ্বারা না হয়, কেবল তখনই নতুন কর্মী নিয়োগ দেওয়া।

নতুন কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া এমনিতেও একটি খরচের খাত। তার ওপরে যদি কর্মী কাজের পরিবেশে মানিয়ে না নিতে পারেন, তবে সেটা শুধু আর্থিক ক্ষতি নয়, অন্য কর্মী এবং উদ্যোক্তার আত্মবিশ্বাসেও খারাপ প্রভাব ফেলে।

২. অতিরিক্ত মিটিংকে না বলুন
ব্যবসায় অর্থের চেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে সময়। একটা ব্যবসাকে সফল করতে কত কাজই না করতে হয়। কিন্তু সারা দিনের সময়সীমা যেহেতু ২৪ ঘণ্টার বেশি নয়, সময়কে বুঝে খরচ করাই ভালো। সফল হতে হলে অপ্রয়োজনীয় মিটিংকে না বলতে হবে। সঙ্গে প্রয়োজনীয় মিটিংয়ের সময়ও বেঁধে ফেলতে হবে, যেন অযথা গল্পে সময় নষ্ট না হয়।

সবচেয়ে ভালো বুদ্ধি হচ্ছে নিজের সারা দিনের কাজের তালিকা করে নিতে হবে। এরপর তালিকা মিলিয়ে কাজ করতে হবে। এভাবে কাজগুলোর অগ্রগতি চোখের সামনে থাকবে আর সময়েরও সর্বোত্তম ব্যবহার হবে।

৩. বহু উদ্যোগ ও বহু কৌশলকে না বলুন
তরুণ ব্যবসায়ীরা একই সঙ্গে অনেক ব্যবসা শুরু করেন। মনে হয় যেন একটা ব্যবসা আরেকটা ব্যবসাকে সহায়তা করবে। কিন্তু বাস্তবে তা হয় না। বরং একসঙ্গে অনেক ব্যবসা উদ্যোক্তার মনঃসংযোগ নষ্ট করে আর কোনোটাতেই ঠিক সফল হওয়া যায় না।
একই কথা নতুন কৌশলের জন্য। অনেক কৌশল শুধু কাজে ব্যাঘাতই করে না, সঙ্গে পয়সা নষ্ট তো আছেই। ফলে সফল হতে হলে বহু উদ্যোগ ও অপ্রয়োজনীয় কৌশলকে না বলতে হবে। যা চাইছেন তার সবই হবে, তবে আস্তে আস্তে। একটার পর একটা অর্জন করে পরে সফল হওয়া যাবে।

© প্রথম আলো

55
Real Estate / ভাড়া বাসায় আর কত
« on: February 15, 2021, 01:56:37 PM »
ভাড়া বাসায় আর কত


‘ভাড়া বাসায় আর কত? ভাড়ার টাকায় শুরু হোক ঋণ শোধ। আর ঋণেই হয়ে যাক নিজের ফ্ল্যাট।’ ঠিক এমনভাবেই রহমান পাশার কাছে আবাসন ঋণের বিপণন করেছিলেন বেসরকারি এক ব্যাংকের খুচরা ঋণ বিভাগের কর্মকর্তা।

এক শিল্প গ্রুপের মধ্যম শ্রেণির কর্মকর্তা রহমান পাশাও এতে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন। নিজের জমানো টাকা ও ব্যাংকঋণে এখন নিজের ফ্ল্যাটে থাকেন। ভাড়ার টাকায় ঋণের কিস্তি শোধ করেন। এটি ২০১৬ সালের ঘটনা। আর এখন তো সুদহার কমায় আবাসন ঋণ আরও সস্তা হয়ে পড়েছে। করোনার কারণে কিছুদিন ফ্ল্যাট বিক্রির গতি কম ছিল। এখন বিক্রি বেড়েছে।

নিজের একটি ফ্ল্যাট হবে, মধ্যবিত্ত মানুষের কাছে এক বড় স্বপ্ন। তাঁদের এই স্বপ্নপূরণে এখন হাতছানি দিয়ে ডাকছে দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। তারা যেন প্রতিযোগিতার ভিত্তিতে সুদের হার কমিয়ে গ্রাহকদের দীর্ঘ মেয়াদে আবাসন ঋণ দিতে নেমেছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান গ্রাহকের আবেদন পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ঋণের অনুমোদন দিচ্ছে। অন্যরা নির্দিষ্ট সময়েই ঋণ আবেদন নিষ্পত্তি করছে।

সুদহার সর্বোচ্চ ৯%
বিদায়ী ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে সুদের হার সর্বোচ্চ ৯ শতাংশে কার্যকর হওয়ার পর থেকে ব্যাংকগুলোর মধ্যে একধরনের প্রতিযোগিতা শুরু হয় সুদ কমানোর। এর ফলে বেশির ভাগ ব্যাংকের দেওয়া ঋণের সুদহার সাড়ে ৭ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে রয়েছে। এরই মধ্যে বেসরকারি খাতের ডাচ্-বাংলা ব্যাংক বড় চমক দেখিয়েছে। ব্যাংকটি এখন সাড়ে ৭ শতাংশ সুদে অন্য ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আবাসন ঋণের গ্রাহকদের নিজের ব্যাংকে আনছে (ঋণ টেকওভার)। তবে নতুন ঋণ দিচ্ছে ৮ শতাংশ সুদে। ব্যাংকটির ‘ঠিকানা’ নামে আলাদা একটি ঋণ প্রকল্প চালু রয়েছে।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মো. শিরিন এ নিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, ‘করোনায় কিছুদিন ঋণচাহিদা ছিল না। এখন ঋণের জন্য ভালো চাহিদাও আসছে। আমরাও ঋণ দিচ্ছি। এ জন্য সুদহারও কমিয়ে দিয়েছি।’

শুধু ডাচ্-বাংলা নয়, এখন সব ব্যাংকই আবাসনের মতো খুচরা ঋণকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে। ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, অন্য ঋণের চেয়ে ফ্ল্যাট কেনার ঋণ বেশি নিরাপদ। কারণ, এই ঋণে খেলাপি কম এবং ঋণ পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত ফ্ল্যাট ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে থাকে। আর সংকটে না পড়লে কেউ ফ্ল্যাটের মালিকানা হারাতে চান না। তাই ব্যাংকগুলো দিন দিন এই ঋণে মনোযোগ বাড়াচ্ছে। আর এখন শিল্প ঋণের চাহিদা না থাকায় ব্যাংকগুলো আবাসনসহ বিভিন্ন খুচরা ঋণে নজর বাড়িয়েছে।

বেড়েছে ঋণের সীমাও
আগে ব্যাংকগুলো ১ কোটি ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত গৃহঋণ দিতে পারত। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ২ কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদানের অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো (লিজিং কোম্পানি) আগে থেকেই গ্রাহকের চাহিদামতো ঋণ দিতে পারছে। ঋণ বিতরণের পাশাপাশি ঋণ আদায়ের প্রক্রিয়াটিও আগের চেয়ে অনেক সহজ করেছে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো। প্রতিষ্ঠানগুলোই ঋণ দিতে ছুটছে গ্রাহকের দ্বারে দ্বারে।

ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরফান আলী প্রথম আলোকে বলেন, ‘করোনার কারণে অনেক ফ্ল্যাট বিক্রির উপযোগী হয়েছে। কারণ, বড় একটা সময় ফ্ল্যাট বিক্রি বন্ধ ছিল। এখন সুদহার কমে গেছে। ভালো ঋণ আবেদনও আসছে। আমরাও ঋণ দিচ্ছি। সুদহার সাড়ে ৮ শতাংশ।’

ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বাড়ি নির্মাণ বা ফ্ল্যাট কিনতে চাইলে মোট দামের ৩০ শতাংশ টাকা নিজের থাকতে হয়। অর্থাৎ, এক কোটি টাকার ফ্ল্যাট কিনতে প্রতিষ্ঠানগুলো ৭০ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়। বাকি ৩০ লাখ টাকা ক্রেতার নিজের থাকতে হয়। তবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ফ্ল্যাটের দামের পুরোটাই ঋণ হিসেবে দিতে পারে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আবাসন খাতে ঋণ বিতরণে শীর্ষ ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে আইএফআইসি, ডাচ্-বাংলা, প্রাইম, ব্র্যাক, দ্য সিটি, ব্যাংক এশিয়া, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক প্রভৃতি।

২০১৫ সালের আগে আবাসন ঋণের সুদহার ছিল ১৫ শতাংশের বেশি। ওই সময়ে অনেকে ঋণ নিয়ে শোধ করতে পারেননি। এতে আবাসন খাতেও বড় সংকট তৈরি হয়েছিল। অন্যান্য দেশে কম সুদ ও লিজে আবাসন ঋণের ব্যবস্থা থাকলেও বাংলাদেশে এমন কোনো সুযোগ এখনো সৃষ্টি করা হয়নি। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এখন বিভিন্ন আকর্ষণীয় পণ্য তৈরি করে ঋণ দেওয়ার চেষ্টা করছে।

পথ দেখায় আইএফআইসি
দেশে আবাসন ঋণের সুদহার কমিয়ে প্রথম বড় আলোচনায় আসে বেসরকারি খাতের আইএফআইসি ব্যাংক। ২০১৫ সালের শুরুর দিকেও ব্যাংকটি যেখানে গৃহঋণের বিপরীতে ১১ দশমিক ৯৫ শতাংশ সুদ নিত, সেখানে ওই বছরের ডিসেম্বরে তা কমিয়ে ৯ দশমিক ৯৯ শতাংশ সুদে ঋণ দিতে শুরু করে। তখন ব্যাংক খাতে সুদহার ছিল ১৫ শতাংশের ওপরে। এর ফলে কম সুদে ঋণ বিতরণে সাফল্য আসে। গ্রাহকেরা সবচেয়ে বেশি আবাসন ঋণ নেন আইএফআইসি ব্যাংক থেকে। ব্যাংকটির ‘আমার বাড়ি’ নামে আলাদা একটি পণ্য রয়েছে। এই ব্যাংক বাড়ি নির্মাণে ২ কোটি ও সেমিপাকা ভবন নির্মাণে ৩৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দেয়। আইএফআইসি ব্যাংকের দেখাদেখি অন্যান্য ব্যাংক আর আর্থিক প্রতিষ্ঠানও এই পথে হাঁটতে শুরু করে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আবাসন খাতে ঋণ বিতরণে শীর্ষ ব্যাংকগুলোর মধ্যে রয়েছে আইএফআইসি, ডাচ্-বাংলা, প্রাইম, ব্র্যাক, দ্য সিটি, ব্যাংক এশিয়া, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক প্রভৃতি। আর আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং (ডিবিএইচ), আইডিএলসি, আইপিডিসি, ন্যাশনাল হাউজিং, লংকাবাংলা এগিয়ে আছে। এসব প্রতিষ্ঠানের ঋণের সুদহার এখন সাড়ে ৭ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন (বিএলএফসিএ) চেয়ারম্যান ও আইপিডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মমিনুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘যাঁদের আয় নিয়মিত ছিল, তাঁদের হাতে টাকা জমে গেছে। কেউ দেশের বাইরে ঘুরতে যেতে পারেননি। তাঁদের অনেকেই ফ্ল্যাট কেনার দিকে ঝুঁকছেন। ২০১৬ ও ১৭ সালে আবাসনে যে ঋণ যেত, এখন তার চেয়ে বেশি ঋণ বিতরণ হচ্ছে। এখন ঢাকায় প্রতিদিন ১০-১২ টি নতুন ঋণ বিতরণ হচ্ছে। এ ছাড়া ছোট বাড়ি নির্মাণে প্রতি মাসে এক শ জনের বেশি গ্রাহককে ঋণ দিচ্ছি।’

ঋণ পাওয়ার যোগ্যতা
ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বেতনভুক্ত, স্ব-নিয়োজিত (সেলফ-এমপ্লয়েড), ব্যবসায়ী এবং বাড়িওয়ালাদের ঋণ দিয়ে থাকে। আবার ব্যক্তিগত বা যৌথ, দুইভাবেই আবেদন করা যায়। ঋণ পাওয়ার জন্য বয়স হতে হবে ২৫ থেকে ৬৫ বছরের মধ্যে। যাঁরা চাকরিজীবী, তাঁদের মাসিক আয় হতে হবে সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা।

ঋণ আবেদনপত্রে সংযুক্ত করতে হবে আবেদনকারী এবং গ্যারান্টারের জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি, পাসপোর্ট সাইজ ছবি, পরিষেবা বিলের কপি (গ্যাস বিল, টেলিফোন বিল, ওয়াসা বিল) ও অন্যান্য আয়–সংক্রান্ত নথিপত্র।

এ ছাড়া বেতন বা আয়ের এক বছরের ব্যাংক লেনদেন বিবরণী (স্টেটমেন্ট), ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ (ই-টিন) কপি জমা দিতে হবে। বাড়ির নির্মাণ ঋণ হলে জমির মালিকানা–সংক্রান্ত নথিপত্র ও অঙ্গীকারনামা জমা দিতে হবে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো ২৫ বছর মেয়াদ পর্যন্ত যেকোনো পরিমাণ হোম ঋণ প্রদান করছে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান ডিবিএইচের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাসিমুল বাতেন প্রথম আলোকে বলেন, গত বছরের শেষ চার মাস থেকে ভালো ঋণ যাচ্ছে। আবাসন প্রতিষ্ঠানগুলো ভালো ব্যবসা করেছে। আর সুদহার আগের চেয়ে কম হওয়ায় গ্রাহকদেরও আগ্রহ বেড়েছে। বলা যায়, সব মিলিয়ে আবাসন ঋণ আগের চেয়ে বেশি যাচ্ছে।

নথিপত্র যা লাগবে
ফ্ল্যাট কেনার ঋণের জন্য অবশ্য কাগজপত্র কম লাগে। এ জন্য ফ্ল্যাট ক্রেতা এবং ডেভেলপারের সঙ্গে সম্পাদিত ফ্ল্যাট ক্রয়ে রেজিস্ট্রি করা চুক্তিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি দিতে হবে। এ ছাড়া জমির মালিক ও ডেভেলপারের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তিপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি, অনুমোদিত নকশা ও অনুমোদনপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি এবং ফ্ল্যাট কেনার রেজিস্ট্রি করা বায়না চুক্তিপত্রের মূল কপি এবং বরাদ্দপত্র লাগবেই।

বাড়ি নির্মাণ ঋণের জন্য প্রথমেই দরকার যথাযথ কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদিত নকশার সত্যায়িত ফটোকপি, মূল দলিল, নামজারি খতিয়ান, খাজনা রসিদের সত্যায়িত ফটোকপি। এ ছাড়া লাগবে সিএস, এসএ, আরএস, বিএস খতিয়ানের সত্যায়িত কপি। জেলা বা সাবরেজিস্ট্রারের কার্যালয় থেকে ১২ বছরের তল্লাশিসহ নির্দায় সনদ (এনইসি)। সরকার থেকে বরাদ্দ পাওয়া জমির ক্ষেত্রে মূল বরাদ্দপত্র এবং দখল হস্তান্তরপত্রও লাগবে।

© প্রথম আলো

56
ফ্ল্যাট বা জমি কিনতে ঘুমের বারোটা বাজাবেন না


‘নে বাবা, তোরা এখন নাকে তেল দিয়ে ঘুমা। নো টেনশন।’ আশিয়ান সিটির আলোচিত এই বিজ্ঞাপন দেশে অনেকেরই ঘুম হারাম করেছে। কষ্টের টাকায় প্লট বুকিং দিয়ে আদালতের বারান্দায় বারান্দায় ঘুরে হয়রান হচ্ছেন অনেকেই।

আলোচিত এই প্রকল্প ছাড়া অনেক প্রতিষ্ঠানের প্লট বা ফ্ল্যাট কিনে প্রতারিত হয়েছেন ক্রেতারা। অনেক ক্ষেত্রেই ফ্ল্যাট বা প্লট বুঝে পেতে বছরের পর বছর সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে তাঁদের। তাই প্রতারণার ফাঁদে পা যেন না আটকায়, সে জন্য আগেই ভালোভাবে খোঁজখবর নিন। সবকিছু পরিষ্কার থাকলেই কেবল বিনিয়োগের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে যান। নতুবা শান্তিতে মাথা গোঁজার জন্য যে কাঁড়ি কাড়ি টাকা দিয়ে ফ্ল্যাট বা প্লট কিনবেন, সেটাই একদিন অশান্তির কারণ হয়ে উঠতে পারে।

আবাসন প্রকল্পের জমির দলিলে কোনো ভেজাল আছে কি না এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে কি না, তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, নকশা অনুযায়ী ভবন তৈরি না হলে রাজউক সেই ভবনের অবৈধ অংশ ভেঙে ফেলতে পারে।
ফ্ল্যাট-প্লট কিনতে আপনি কত টাকা বিনিয়োগ করবেন, প্রথমে তার একটি হিসাব কষে ফেলুন। তারপর পছন্দমতো ফ্ল্যাট-প্লট খুঁজুন। ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ঋণ নিয়েও ফ্ল্যাট কিনতে পারেন। এসব প্রতিষ্ঠান দীর্ঘমেয়াদি কিস্তিতে ব্যাংকঋণ দিচ্ছে। এমনকি কোনো কারণে আপনি আয়কর নথিতে কোনো বছরের কিছু আয় দেখাতে ভুলে গেছেন, এখন সেই টাকায় ফ্ল্যাট কিনতে পারবেন। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন করবে না।

টাকার সংস্থানের কথা হলো। এবার নিজের চাহিদা অনুযায়ী এলাকায় খোঁজখবর নিন কোন কোন প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প রয়েছে। তারপর সরেজমিনে ঘুরে দেখুন। দাম–দরের বিষয়ে আশপাশে কিছু প্রকল্পেরও খোঁজ নিন। ভবনের নকশা দেখুন। আবাসন প্রতিষ্ঠানটি রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) সদস্য কি না, সেটিও যাচাই করুন।

ব্যাটে-বলে মিললে কাগজপত্র যাচাইয়ে নামুন। বিশেষ করে আবাসন প্রকল্পের জমির দলিলে কোনো ভেজাল আছে কি না এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে কি না, তা জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, নকশা অনুযায়ী ভবন তৈরি না হলে রাজউক সেই ভবনের অবৈধ অংশ ভেঙে ফেলতে পারে। মনে রাখুন, রাজউকের মতো চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও নিজ নিজ প্লট প্রকল্পের অনুমোদন দিয়ে থাকে।

কোনোভাবেই আবাসন প্রতিষ্ঠানের চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে ফ্ল্যাট কেনায় ঝাঁপ দেবেন না। আবারও বলছি, সতর্ক থাকুন, প্লট প্রকল্পটি রাজউকের ডিটেইল এরিয়া প্ল্যানের (ড্যাপ) বন্যাপ্রবণ অঞ্চলে পড়েছে কি না, জেনে নিন। আবার যে এলাকায় প্রকল্পটি, সেখানে আদৌ তাদের জমি আছে কি না, সেটাও জানুন।

জানতে চাইলে দেশের শীর্ষস্থানীয় আবাসন প্রতিষ্ঠান কনকর্ডের হেড অব ব্র্যান্ড মো. তারিকুল আলম প্রথম আলোকে বলেন, আবাসন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তির আগে অবশ্যই চুক্তিপত্র ভালোভাবে পড়ে দেখা প্রয়োজন। নিজে না বুঝলে আইনজীবীর পরামর্শও নেওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া ভবন নির্মাণের কোয়ালিটি বা মান বোঝার জন্য কী ধরনের রড, সিমেন্ট ও বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার করা হবে, সেটিও খোঁজ নেওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ফ্ল্যাট-প্লট কিনতে ক্রেতার অবশ্যই কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) থাকতে হবে। টিআইএন ছাড়া ফ্ল্যাট-জমি নিবন্ধন করা যাবে না। আর সেই টিআইএনের বিপরীতে নিয়মিত বার্ষিক কর বিবরণী জমা দিতে হবে।

ঢাকার আশপাশে অনেকগুলো প্লট প্রকল্প গড়ে উঠছে। ক্রেতাদের ভেড়াতে অনেকেই আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে। প্লট প্রকল্পগুলোর মধ্যে অনেকগুলোর অবস্থানই রাজউকের পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পের আশপাশে। এই সরকারি প্রকল্পে ২৫ হাজারের বেশি আবাসিক প্লট থাকলেও নাগরিক সেবা না থাকায় এখনো বাসযোগ্য হয়নি। অথচ প্রকল্পটির বয়স ২৪ বছর। সরকারি প্রকল্পের এই অবস্থা হলে বেসরকারিগুলোর অবস্থান কোথায়, সেটি সত্যি ভাবার বিষয়। তাই প্লট কেনার আগে অনেক হিসাব–নিকাশ করতেই হবে। নতুবা নিজের একটি বাড়ির স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে যাবে।

অনেক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা ভাড়া জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে আশপাশের অনেক জমি নিজেদের বলে দাবি করে। তাই প্রকল্পের অনুমোদন আছে কি না এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের নামে আদৌ জমি আছে কি না সেটি যাচাই করতে হবে। অনেক কোম্পানির প্রতিনিধিরা বলেন, তাঁরা উপজেলা চেয়ারম্যানের অনুমতি নিয়ে ব্যবসা করছেন। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যান কখনোই নিয়ন্ত্রক সংস্থা নয়। তারপর দেখতে হবে, প্রকল্প বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠানটি রিহ্যাব অথবা বাংলাদেশ ল্যান্ড ডেভেলপারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএলডিএ) সদস্য কি না। আইন অনুযায়ী, সংগঠন দুটির সদস্য না হলে ব্যবসা অবৈধ।

জানতে চাইলে রিহ্যাবের সহসভাপতি সোহেল রানা প্রথম আলোকে বলেন, সরকারের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে অনুমোদিত প্রকল্প ছাড়া প্লট কেনাবেচা করা যাবে না। তবে রাজধানীর আশপাশে যত প্রকল্প আছে, তার মধ্যে অল্পসংখ্যকেরই অনুমোদন রয়েছে। ফ্ল্যাট ও প্লট প্রকল্প কেনার আগে কোম্পানি সম্পর্কে জানতে চাইলে ক্রেতারা রিহ্যাবের কার্যালয়ে খোঁজ নিতে পারেন বলেও জানান তিনি।

Source: © প্রথম আলো

57
SEO (Search Engine Optimization) / What is the importance of technical SEO?
« on: February 13, 2021, 10:57:12 AM »
What is the importance of technical SEO?

Search engine optimization (SEO) continues to be an essential part of any digital marketing strategy. As much as we like talking about the newest and latest digital marketing tactics, SEO is a reliable mainstay and will be so for the foreseeable future.

Why Technical SEO Is Important

There isn’t one overarching plug-in or hack that will help your website have the “perfect” technical SEO. That said, there are a variety of things you can do that, collectively, can significantly improve your technical SEO and put you ahead of the competition.

Why do you want to prioritize technical SEO? Well, because technical SEO is what allows search engines like Google to know that you have a website of high value. This is important because it can prompt the search engines to rank you higher. After all, they primarily want to present users with the best possible results for their chosen keywords, and technical SEO is a way to ensure your website meets the requirements.

If Google prioritized webpages that were slow, nonresponsive or confusing to navigate, Google users would be more likely to take their search queries somewhere else. So if your website loads quickly, has no dead links and is secure, Google’s crawlers will give it an extra boost in search rankings.


58
Agriculture / কৃষিই ভরসার জায়গা
« on: February 09, 2021, 10:51:22 AM »
কৃষিই ভরসার জায়গা

করোনাকালের ভয়ংকর পরিস্থিতির মধ্যেও কৃষির সামগ্রিক উৎপাদন এ কথা আবারো প্রমাণ করল কৃষকরাই বাংলাদেশের নিবেদিতপ্রাণ দেশপ্রেমিক। কেননা, করোনাকালে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষক, শ্রমিক, উদ্যোক্তা, ছাত্র-শিক্ষকসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ যখন লকডাউনে ঘরবন্দী, তখনো মাঠে তৎপর ছিলেন বাংলার কৃষকরা। করোনার ঝুঁকি নিয়েও তারা দিনরাত খেটে ফলিয়েছেন সোনার ফসল। বলতে দ্বিধা নেই, কৃষকের সেই অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসলই বাঁচিয়ে রেখেছে ঘরবন্দী ১৭ কোটি মানুষের জীবন। করোনায় সবকিছু স্থবির হয়ে গেলেও কৃষকরাই সচল রেখেছেন দেশের অর্থনীতি। বিভিন্ন বিশ্লেষণ বলছে, সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি যেসব ব্যক্তি বা সংগঠন করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে ঘরবন্দী মানুষকে খাদ্যসহায়তা দিয়েছে, তার অধিকাংশই ছিল কৃষিপণ্য। করোনাকালে লকডাউনে পরিবহন, হাটবাজার সবকিছু ছিল বন্ধ আর ক্রেতারা গৃহবন্দী থাকায় কৃষকরা উৎপাদিত পণ্য কম দামে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছেন। অনেক ফসল নষ্ট হয়েছে। করোনার ক্ষতির মধ্যে এসেছে বন্যার দীর্ঘস্থায়িত্ব। কিন্তু তারপরও কৃষকরা দমে যাননি। নিবিষ্ট মনে বাংলার কৃষকরা উৎপাদনে নেমেছেন ফসলের মাঠে। তাই এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায়, করোনাকালে বাংলাদেশের কৃষি খাতের এই অবদান আবারও মনে করিয়েছে, ‘কৃষিই আসল ভরসা’ ।


আসল ভরসা কৃষি

কৃষির অন্যতম সাফল্য হলো, দেশে ধান উৎপাদনে এসেছে বিপ্লব। স্বাধীনতা-পরবর্তী সময় থেকে এ পর্যন্ত ধানের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় চার গুণ। আমরা জানি, বাংলাদেশের জাতীয় অর্থনীতি দাঁড়িয়ে আছে কৃষি, তৈরি পোশাকশিল্প এবং রেমিটেন্সের ওপর। এর মধ্যে তৈরি পোশাক ও রেমিটেন্স ওঠানামা করে। তবে কৃষি অনেকটাই স্থায়ী পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। কারণ হিসেবে দেখা গেছে, নানা রকম প্রাকৃতিক দুর্যোগ আর আবহাওয়ার প্রতিকূলতা সত্ত্বেও কৃষি কোনো না কোনোভাবে উৎপাদনের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পারছে। বিভিন্ন গবেষণার তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, কৃষিক্ষেত্রে বাংলাদেশ দীর্ঘ বন্ধুর পথ পাড়ি দিয়ে প্রকৃতি ও জনসংখ্যার সঙ্গে সমন্বয় রাখতে ক্রমাগতভাবে যুদ্ধ করে এগিয়ে চলেছে। আমরা দেখতে পাচ্ছি, স্বাধীনতার আগে দেশে সাড়ে সাত কোটি মানুষের খাদ্য উৎপাদন চাহিদায় হিমশিম খেতে হতো, অথচ স্বাধীনতার চার দশক পর ১৭ কোটি মানুষের খাদ্যের চাহিদা মেটাতে সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে বাংলাদেশের কৃষিব্যবস্থা। উন্নয়ন গবেষণা সংস্থা ডেভরেসোন্যান্সলির গবেষণায় দেখানো হয়েছে, কৃষকরা তাদের কৃষিজমিতে ধানসহ অন্যান্য ফসলও ফলিয়ে থাকেন। জমিতে কোনো না কোনো সবজির চাষ করেন ৭৮ শতাংশ কৃষক। ২৬ শতাংশ কৃষক জমিতে পাট চাষ করেন। ১২ শতাংশ কৃষক জমিতে মাছের চাষ করেন, প্রায় সমসংখ্যক কৃষক সরিষা, ডাল এবং রসুন উৎপাদন করেন। বাদাম এবং সয়াবিন উৎপাদন করেন ১০ শতাংশ কৃষক। ভুট্টা চাষ করেন ৫ শতাংশ কৃষক। আম চাষ করেন ৪ শতাংশ কৃষক। পেঁয়াজ চাষ করেন ৪ শতাংশ কৃষক। তিল চাষ করেন ৩ শতাংশ কৃষক। পান উৎপাদন করেন ৩ শতাংশ কৃষক। এ ছাড়া কিছুসংখ্যক কৃষক তাদের জমিতে অন্যান্য ফল ও ফুলেরও চাষ করেন। তবে ১২ শতাংশ কৃষক ধান ছাড়া অন্য কোনো কৃষিকাজে তাদের জমি ব্যবহার করেন না। করোনাকালের মহাবিপর্যয়ের মধ্যে মার্কিন কৃষি বিভাগ (ইউএসডিএ) পূর্বাভাসে বাংলাদেশের জন্য একটি আশার বাণী শুনিয়েছে। ধারাবাহিকভাবে ধান উৎপাদন বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ তৃতীয় বৃহত্তম ধান উৎপাদনকারী দেশ হতে যাচ্ছে। এত দিন চীন ও ভারতের পরই তৃতীয় স্থানে ছিল ইন্দোনেশিয়া। খাদ্যশস্য উৎপাদনের হিসাব অনুযায়ী এখনো ধান চাষে গ্রামবাংলার ৪৮ শতাংশ মানুষের কর্মসংস্থান হয়। বাংলাদেশের জিডিপিতে কৃষি খাতের যে অংশগ্রহণ, তার অর্ধেক এবং জাতীয় আয়ের ৬ ভাগের ১ ভাগ আসে ধান থেকে। দেশের ১ কোটি ৩০ লাখ পরিবার প্রতিবছর ১ কোটি ৫ লাখ হেক্টর একর জমিতে ধান চাষ করছে।

কৃষিই চালিকাশক্তি

কৃষি উৎপাদন বাড়িয়ে খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করায় বাংলাদেশের সাফল্যকে বিশ্বের জন্য উদাহরণ হিসেবে প্রচার করছে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো। পরিসংখ্যান বলছে, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কৃষির আনুপাতিক অবদান কমলেও মোট কৃষি উৎপাদন বাড়ছে। কৃষিতে উন্নত প্রযুক্তি, বীজ, সার এবং যন্ত্রের ব্যবহার উত্পাদন বাড়ার পেছনে প্রধান কারণ। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে উচ্চফলনশীল জাতের বীজ এবং পরিবেশ-সহিষ্ণু বিভিন্ন ফসল। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বহুলাংশে কৃষি খাতের উন্নয়নের ওপর নির্ভরশীল। আশার খবরটি হচ্ছে, কৃষিবান্ধব নীতি প্রণয়ন ও সময়োপযোগী বিভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার নিশ্চিতের পদক্ষেপ গ্রহণ করায় দেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে রেকর্ডের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে একই জমিতে বছরে একাধিক ফসল চাষের দিক থেকেও বিশ্বে পথিকৃৎ বাংলাদেশ।

প্রধান খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়ানোর ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দেশের তালিকায় উঠে এসেছে বাংলাদেশ। কেবল উৎপাদন বৃদ্ধিই নয়, হেক্টরপ্রতি ধান উৎপাদনের দিক থেকেও অধিকাংশ দেশকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ। বাংলার কৃষকরা এখানেই থেমে যাননি। একই জমিতে বছরে একাধিক ফসল চাষের দিক থেকেও বাংলাদেশ এখন বিশ্বের জন্য উদাহরণ। জনসংখ্যা বৃদ্ধি, কৃষিজমি কমতে থাকাসহ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও বৈরী প্রকৃতিতেও খাদ্যশস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উদাহরণ। ধান, গম ও ভুট্টা বিশ্বের গড় উৎপাদনকে পেছনে ফেলে ক্রমেই এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। সবজি উৎপাদনে তৃতীয় আর মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে। বন্যা, খরা, লবণাক্ততা ও দুর্যোগসহিষ্ণু শস্যের জাত উদ্ভাবনেও শীর্ষে বাংলাদেশের নাম। আমন, আউশ ও বোরো ধানের বাম্পার ফলনে বছরে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টন খাদ্যশস্য উৎপাদনের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। ৮৫ লাখ টন আলু উৎপাদনের মাধ্যমে বাংলাদেশ শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায়। সাড়ে ১০ লাখ টন আম উৎপাদনের মাধ্যমে বিশ্বে নবম স্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ। হেক্টরপ্রতি ভুট্টা উৎপাদনে বৈশ্বিক গড় ৫ দশমিক ১২ টন। বাংলাদেশে এ হার ৬ দশমিক ৯৮ টন। বাংলাদেশ এখন চাল, আলু ও ভুট্টা রপ্তানি করছে।

করোনায় কৃষকের ক্ষতি

করোনার লকডাউনের ফলে কৃষিপণ্যের উৎপাদন, ফসল সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধানের ক্ষেত্রে করোনার প্রভাব খুব বেশি না থাকলেও কৃষির অন্য ক্ষেত্র যেমন: সবজি, ফল, ফুল, মাছ, গবাদিপশু, পাখি ইত্যাদি চাষাবাদ বা পালনে করেনাকালের প্রভাব লক্ষণীয়। ডেভরেসোন্যান্সলির গবেষণায় ৯০ শতাংশ কৃষক বলেছেন, করোনার কারণে তাদের কৃষি ক্ষতির মুখে পড়েছে। ৭৮ শতাংশ কৃষক তাদের উৎপাদিত সবজি, মাছ, দুধ, ডিম, এমনকি পোলট্রি বাজারজাত করতে সমস্যায় পড়েছেন। পরিবহন ও হাটবাজার সীমিত হওয়ায় খুব কমই বাজারে নিতে পারছেন। ৩৮ শতাংশ কৃষক বলেছেন, বাজারে যতটুকু কৃষিপণ্য যাচ্ছে, তার সঠিক দামও পাচ্ছেন না; এমনকি বিক্রিও হচ্ছে না। বেগুন, শসা, শিম ও আলুর মতো সবজি বিক্রিতে কৃষককে সবচেয়ে বেশি লোকসান গুনতে হয়েছে। এ গবেষণায় করোনার কারণে কৃষকের পরিবারপ্রতি আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৯ হাজার ৮৫৩ টাকা, যা তাদের পরিবারের বার্ষিক আয়ের ১০ দশমিক ৫ শতাংশ । এ ছাড়া সম্ভাব্য ক্ষতির ক্ষেত্রসমূহ বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, বাজার এবং পণ্য সরবরাহ বা যোগাযোগব্যবস্থা পূর্ণরূপে সচল হতে যদি আরো ৩-৪ মাস সময় লাগে, তাহলে শুধু কৃষি খাতে পরিবারপ্রতি সম্ভাব্য ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে গড়ে ৭৩ হাজার ১০০ টাকা, যা তাদের পরিবারের বার্ষিক আয়ের ৩৯ শতাংশ ।

শীর্ষত্বের লড়াইয়ে বাংলাদেশের কৃষি


কৃষি খাতে আমাদের অকল্পনীয় উন্নতি সাধিত হয়েছে। কৃষি এখন শুধু ফসলের মাঠে নয়; মৎস্য, গবাদিপশু পালন, সবজি ও ফলের বাণিজ্যিক চাষাবাদ থেকে শুরু করে ব্যতিক্রম এবং নতুন নতুন কৃষিজ বিষয়ে ব্যাপক আগ্রহ ও সাফল্য দেশের সামগ্রিক কৃষি উন্নয়নে আশার আলো দেখাচ্ছে। ছাদকৃষিতেও ব্যাপক সাফল্য, আগ্রহ ও জনপ্রিয়তা আশাব্যঞ্জক। ফসলের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের সফলতাও বাড়ছে। ১৯৭০ সাল থেকে দেশি জাতকে উন্নত করে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা উচ্চফলনশীল (উফশী) জাত উদ্ভাবনের পথে যাত্রা করেন। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি), বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা), বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বারি), বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএসআরআই), বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই) কৃষিজ জাত উদ্ভাবনে ক্রমাগতভাবে সফলতা দেখিয়ে যাচ্ছে । বিশ্বে প্রথমবারের মতো জিঙ্কসমৃদ্ধ ধানের জাত উদ্ভাবন করেন বাংলাদেশের কৃষি গবেষকরা। উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে এতগুলো প্রতিকূল পরিবেশসহিষ্ণু ধানের জাত উদ্ভাবনের দিক থেকেও বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষে। কৃষিতে উন্নত প্রযুক্তি, বীজ, সার এবং যন্ত্রের ব্যবহার উৎপাদন বাড়ার পেছনে প্রধান উজ্জীবক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। তার সঙ্গে বিশেষ অবদান রয়েছে আমাদের কৃষিবিজ্ঞানীদের অক্লান্ত পরিশ্রম আর নিবিষ্ট গবেষণায় উচ্চফলনশীল, কম সময়ে ঘরে তোলা যায় এমন জাত ও পরিবেশসহিষ্ণু নতুন জাত উদ্ভাবন। ধান, পাটের পাশাপাশি খাদ্যশস্য, শাকসবজি, রকমারি ফল, সমুদ্র ও মিঠাপানির মাছ, গবাদিপশু, পোলট্রি মাংস ও ডিম, উন্নত জাতের হাঁস-মুরগি, দুগ্ধ উৎপাদন অনেক বেড়েছে। অনেক ক্ষেত্রে বিশ্ব উৎপাদন তালিকায় শীর্ষত্বের লড়াই করছে বাংলাদেশের কৃষি।
 

লেখক: কৃষি ও শিল্প-অর্থনীতি বিশ্লেষক

Source: https://www.sarakhon.com/16320/%E0%A6%95%E0%A7%83%E0%A6%B7%E0%A6%BF%E0%A6%87-%E0%A6%AD%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A6%97%E0%A6%BE

59
সাক্ষাৎকারে হলে ভুল, গুনতে হবে মাশুল


এ দেশে একটি চাকরিকে প্রায় সময়ই সোনার হরিণের সঙ্গে তুলনা করা হয়। বাস্তব জীবনে সত্যি সত্যি সোনার হরিণের খোঁজ কেউ পায়নি। কিন্তু সোনার হরিণরূপী চাকরির নাগাল পাওয়া যায়। তবে চাকরি পাওয়ার আগে বেশ কিছু ধাপ পেরিয়ে আসতে হয়। এর মধ্যে প্রধানতম হলো ইন্টারভিউ বা সাক্ষাৎকার। এ ক্ষেত্রে যেসব ভুল একদমই করা যাবে না, সেগুলো সম্পর্কে আসুন জেনে নেওয়া যাক:

লিখেছেন অর্ণব সান্যাল


১. শুরুতে নয় দেরি
চাকরিপ্রার্থীদের সাক্ষাৎকারের কিছু সময় আগেই সাক্ষাৎকার গ্রহণের জায়গায় পৌঁছে যাওয়া উচিত। অন্তত ১৫–২০ মিনিট আগে সেখানে থাকলে ভালো। রাস্তায় যানজট থাকাটা অস্বাভাবিক নয়। তাই সেই প্রস্তুতি মাথায় নিয়েই বের হতে হবে। তা ছাড়া নতুন জায়গার সঙ্গে নিজের মনকে মানিয়ে নেওয়ারও একটি বিষয় আছে। অনেকে সাক্ষাৎকার শুরুর সময় বেশ উদ্বিগ্ন থাকেন। কিছু ক্ষেত্রে হয়তো অনেকে হড়বড় করে কথা বলতে থাকেন। কেউ আবার হারিয়ে ফেলেন উপযুক্ত শব্দ, কথায় আটকে যান বারবার। তাই সাক্ষাৎকার দেওয়ার কিছু আগে গিয়ে নিজের মনকে শান্ত ও সাক্ষাৎকারের উপযোগী করে গড়ে তোলা প্রয়োজন। মনে রাখতে হবে, সাক্ষাৎকার শুরুর সময়টায় কিছুতেই খেই হারিয়ে ফেলা চলবে না।

২. বেশভূষায় যত্ন নিন
সাক্ষাৎকারে অবশ্যই ফিটফাট হয়ে যেতে হবে। সেটি শুধু পোশাকেই নয়। আপনি হয়তো পরিপাটি জামাকাপড় পরেই গেলেন, কিন্তু আপনার শরীরী ভাষা ছিল ক্লান্ত। সে ক্ষেত্রে সাক্ষাৎকার গ্রহীতা তা কখনোই ইতিবাচকভাবে নেবেন না। মনে রাখবেন, ফ্যাশন শোর মতো জমকালো পোশাকে সাক্ষাৎকার দিতে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। পরতে হবে রুচিশীল ও ব্যক্তিত্বের সঙ্গে মানানসই পোশাক। একই সঙ্গে শরীরী ভাষাতেও আপনাকে তরতাজা দেখাতে হবে, হতে হবে প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর।

৩. যেকোনো চাকরি চান?
একটি নির্দিষ্ট পদের জন্যই সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়ে থাকে। কেউ কেউ আছেন, যাঁরা যেকোনো মূল্যে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি চান। তাই সাক্ষাৎকারেও তাঁরা বলে ফেলেন, ‘আমি যেকোনো পদেই চাকরি করতে প্রস্তুত।’ কিন্তু এই মনোভাব চাকরিদাতাদের সামনে উপস্থাপন না করাই শ্রেয়। একটি প্রতিষ্ঠান তার প্রয়োজনেই একটি নির্দিষ্ট পদে কর্মী নিতে চায়। সুতরাং সেই পদের জন্য নিজেকে যোগ্য প্রমাণ করাটাই মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। এর বদলে যদি শোনান যে একটি চাকরি হলেই চলবে, তবে তা চাকরিদাতারা ভালো দৃষ্টিতে দেখবেন না। কারণ ওই নির্দিষ্ট পদের জন্য উপযুক্ত লোকই তাঁদের দরকার।

৪. হতে হবে আত্মবিশ্বাসী
আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি থাকলে সাক্ষাৎকার বোর্ড থেকে ফিরতে হবে খালি হাতেই। নিজেকে যেন ক্লান্ত-বিধ্বস্ত বা অপ্রস্তুত মনে না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। নিজের মধ্যে একটি চনমনে ভাব নিয়ে আসতে হবে। সাক্ষাৎকার গ্রহীতাদের করা প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে স্পষ্টভাবে। একটি উত্তরের ব্যাখ্যাও চাইতে পারেন চাকরিদাতা। তাই এর জন্যও নিজেকে প্রস্তুত রাখতে হবে। কথা বলার সময় হাত বেশি না নাড়ানোই ভালো। বরং ধীরস্থিরভাবে সাক্ষাৎকার মোকাবিলা করতে হবে। মনে রাখবেন, হারার আগেই হেরে যাওয়ার কোনো মানে নেই। এই বিশ্বাস রাখতে হবে মনে।

৫. শুধু নিজেকে গুরুত্ব দিলে বিপদ
সব ধরনের সাক্ষাৎকারেই চাকরিপ্রার্থীদের তাদের নিজেদের সম্পর্কে কিছু বলতে বলা হয়। কীভাবে ওই নির্দিষ্ট পদে ভূমিকা রাখবেন—এমন প্রশ্নও করা হয়। খেয়াল রাখতে হবে, এসবের উত্তর যেন ‘আমিময়’ হয়ে না যায়। হয়তো বললেন, প্রতিষ্ঠান থেকে আপনি শিখতে চান, প্রশিক্ষিত হতে চান ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু প্রতিষ্ঠান তো শুধু আপনাকে শেখানোর জন্য বেতন দেবে না, তাই না? কর্মস্থলে নিত্যনতুন বিষয় শেখা, প্রশিক্ষণ পাওয়া বেশ স্বাভাবিক বিষয়। প্রতিষ্ঠানের নিয়মেই একজন নতুন কর্মী এগুলো পাবেন। কিন্তু প্রতিষ্ঠানে আপনি কীভাবে অবদান রাখতে চান, সেই বিষয়টি না জানতে পারলে চাকরিটা দেবে কীভাবে? সুতরাং কথা বলার সময় প্রতিষ্ঠানের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এতে চাকরিদাতা শুরুতেই আপনার পরিকল্পনা সম্পর্কে কিছুটা আঁচ করতে পারবেন।

৬. কোনো প্রশ্ন নেই?
সাক্ষাৎকারের শেষে নিয়োগকর্তা হয়তো বলে বসলেন, ‘আপনার কি জিজ্ঞাসা আছে?’ সাক্ষাৎকারও একধরনের আলাপচারিতা। আলোচনায় কিন্তু দুই পক্ষকেই সমানভাবে অংশ নিতে হয়। তাই নিয়োগকর্তার প্রশ্নের উত্তরে যদি বলে বসেন ‘কোনো প্রশ্ন নেই’, তবে তা কোনো ভালো উদাহরণ সৃষ্টি করবে না। এতে নিয়োগকর্তারা এ–ও ভেবে বসতে পারেন যে আপনার হয়তো এই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করায় আগ্রহ নেই, তাই কিছুই জানতে চান না। সুতরাং কিছু প্রশ্ন আগে থেকেই তৈরি করে রাখুন। যেমন ‘এই পদে কেমন সফলতা পাওয়া যেতে পারে?’ বা ‘এখানকার কর্মসংস্কৃতি কেমন?’ প্রভৃতি। এতে করে ওই প্রতিষ্ঠানে চাকরি পেতে নিজের আগ্রহ অন্তত প্রকাশ পাবে।

৭. সব সাক্ষাৎকারেই সমান গুরুত্ব
সাক্ষাৎকার নানা ধরনের হতে পারে। সরাসরি একক সাক্ষাৎকার, প্যানেল সাক্ষাৎকার, অনানুষ্ঠানিক সাক্ষাৎকার বা গ্রুপ ইন্টারভিউ—যেটাই হোক না কেন, সমান গুরুত্বের সঙ্গে প্রস্তুতি নিতে হবে। কিছু ক্ষেত্রে নিতে হবে বিশেষ প্রস্তুতিও। যেমন টেলিফোনে বা ভিডিওতে সাক্ষাৎকার দেওয়ার ক্ষেত্রে অপেক্ষাকৃত নীরব স্থান বেছে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। ভিডিও কনফারেন্সে সাক্ষাৎকার দেওয়ার ক্ষেত্রে সাক্ষাৎকার শুরুর আগেই নিজের কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের সংযোগ পরীক্ষা করে নিতে হবে। ভিডিও সাক্ষাৎকারেও কিন্তু শরীরী ভাষা ও অভিব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব বিষয়ে হেলাফেলা করলে চলবে না।

তথ্যসূত্র: ফোর্বস ও সিএনবিসি

© প্রথম আলো

60
Online Money Earning / Re: How can we earn through websites?
« on: February 01, 2021, 11:48:19 AM »
FAQs about making money blogging with WordPress?

At WPBeginner, we have helped thousands of beginners start their blogging journey. We have heard almost every question you can think of. Here are the top questions beginners ask us about making money online by blogging.

1. Which one of these proven ways is right for me?

Depends on what you are passionate about and which method would work best with your blog’s topics.

For example, if you run a blog about photography, then affiliate marketing, advertisements, and paid memberships may all work well for your blog.

Focus on offering useful, quality content, that users will find helpful and money will follow. Or as the saying goes, do what you love and the money will follow.

2. How much money can I make from blogging?

It really depends on how much effort you put in and the time you are willing to invest. To be honest, many beginner bloggers lose interest and give up quickly.

You will be making money based on how much traffic you get, the monetization methods you use, and the work you put in. Many successful bloggers make six and even seven figure incomes.

3. How long would it take before I start making some serious money from blogging?

Making money online is not a ‘get-rich-quick’ scam. Anyone telling you otherwise is probably trying to scam you. If you want to make money by starting a blog, then you will have to work hard and invest a lot of your time into it.

There is no easy way to tell you how soon you would start making money. Some bloggers start making small amounts soon after starting their blogs. Others struggle to get their blogs to take off.

However, those who continuously work and stick to a planned strategy are the ones most likely to see encouraging results very early on.

4. How do I get started?

Getting started with your own WordPress blog is easy. However, make sure that you are using the right platform.

Basically, there are two types of WordPress available. WordPress.com: Create a Free Website or Blog which is a hosted solution, and Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress, also known as self-hosted WordPress.

We recommend using Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress because it will allow you to start making money without any limitations. For more details, see our comparison of WordPress.com vs WordPress.org.

You will need a domain name and a web hosting account to start blogging with Blog Tool, Publishing Platform, and CMS - WordPress. Normally, a domain costs $14.99 per year and web hosting $7.99 per month usually paid for a full year.

This is a lot of money if you are just starting a new blog.


Pages: 1 2 3 [4] 5 6 ... 126