Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Sahadat Hossain

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 24
31
বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের শরীর একটু ভারী হবে, মেদ জমবে, স্থূল হয়ে যাবে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু শিশুদের ঝরঝরে পাতলা ছুটন্ত শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমা, মুটিয়ে যাওয়া, ওজন বেড়ে যাওয়া মোটেও স্বাভাবিক নয়। তবে ইদানীং শিশুদের মধ্যেও স্থূলতার হার বেড়েছে।

শিশুর স্থূলতার কারণ
কোনো শিশুর শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমে বয়স অনুপাতে ওজন বেশি হয়ে গেলে, তাকে স্থূলকায় বলা যায়। বৈজ্ঞানিকভাবে শিশুর শরীরের ওজন এবং তার উচ্চতার একটা আনুপাতিক হিসাব করে স্থূলতা সঠিকভাবে নির্ণয় করা হয়।

শিশুর মোটা হয়ে যাওয়ার যতগুলো কারণ আছে, তার মধ্যে প্রয়োজনীয় কায়িক পরিশ্রমের ঘাটতি এবং বেশি বেশি ও বারবার খাওয়ানো অন্যতম। অধিক শর্করাযুক্ত খাবার, যেমন বেশি ভাত, মিষ্টি, কোমল পানীয় অথবা চর্বিযুক্ত খাবার, জাঙ্ক ফুডে আসক্তি শিশুর স্থূলতার কারণ। এর পাশাপাশি বংশগত কারণ, শরীরে হরমোনজনিত সমস্যা, যেমন থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি, মেয়েদের পলিসিস্টিক ওভারির সমস্যা, লম্বা সময় ধরে স্টেরয়েড–জাতীয় ওষুধ সেবন অথবা শরীরে করটিসল হরমোনের আধিক্যও স্থূলতায় ভূমিকা রাখে।

স্থূলতার কারণে যেসব সমস্যা হয়
অতিরিক্ত মোটা শিশুদের অল্প বয়সে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ইত্যাদিতে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

স্থূলকায় শিশুদের রক্তে অতিরিক্ত চর্বি বেড়ে যায় এবং তাদের করনারি রক্তনালির সমস্যা, স্ট্রোক ইত্যাদির ঝুঁকি বেশি।

শরীরের অতিরিক্ত ওজনে হাতে ব্যথা, পা বাঁকা ইত্যাদি সমস্যাও হতে পারে।

স্থূলকায় অনেক শিশুর নাক দিয়ে শ্বাস নেওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। এদের মধ্যে হাঁপানির প্রকোপও বেশি। অনেকের আবার ঘুমের মধ্যে শ্বাসকষ্ট হয়।

অনেকের ঘাড়ের চামড়া কালো হয়ে যায়।

স্থূলকায় শিশুরা কাজকর্মে অল্পতে হাঁপিয়ে যায়। এদের অলস হওয়ার প্রবণতা অনেক বেশি।

অনেকের যকৃতে চর্বি জমে ফ্যাটি লিভার নামক একধরনের রোগের সৃষ্টি হয়।

প্রতিরোধ
স্বাস্থ্যকর ও অস্বাস্থ্যকর খাবারের বিষয়ে শিশুকে সচেতন করা।

দৈনিক খাবারের সময় নির্ধারণ করে বাসার সবাই যতটা সম্ভব একসঙ্গে বসে খাওয়ার অনুশীলন করা।

জোর করে না খাওয়ানো। মুঠোফোন, টেলিভিশন দেখিয়ে খাওয়ানোর অনুশীলন বন্ধ করতে হবে। শিশুরা ক্ষুধার্ত হলেই শুধু খাবার দিতে হবে।

শিশুকে সব সময় খাইয়ে না দিয়ে নিজে নিজে খেতে উৎসাহ দিতে হবে।

দোকানের কেনা অতিরিক্ত চর্বি ও চিনিজাতীয় খাবার না দিয়ে বাড়িতে তৈরি শাকসবজি, মাছ, ডাল ইত্যাদি শিশুর চাহিদা অনুযায়ী দিতে হবে। পরিমিত মাংস খাওয়াতে হবে। চিনিযুক্ত কোমল পানীয় নিরুৎসাহিত করতে হবে।

নিয়মিত কায়িক পরিশ্রমের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে।

শিশুর স্থূলতার কারণ নির্ণয় করতে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্র অথবা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে। জটিলতা তৈরি হওয়ার আগেই প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে হবে।
Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%81%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A7%82%E0%A6%B2%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A7-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%AF%E0%A7%87%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87

32
দৈহিক ওজন বৃদ্ধির মূল কারণ হলো শক্তি ও তার ব্যবহারের মধ্যে অসংগতি। আমাদের গৃহীত প্রায় প্রতিটি খাবারেই শক্তি ক্যালরি হিসেবে থাকে। মানুষের বয়স, লিঙ্গ, ওজন ও দৈনন্দিন কাজের ওপর শরীরের ক্যালরির চাহিদা নির্ভর করে। কেউ যদি তার প্রাত্যহিক চাহিদার চেয়ে বেশি ক্যালরি প্রতিদিন বা প্রায়শই খাবারের মাধ্যমে গ্রহণ করে, তবে বাড়তি অংশ শরীরে মেদ হিসেবে জমতে থাকবে। স্থূলতা নিরূপণের জন্য কিছু পদ্ধতি আছে। এর মধ্যে বিএমআই সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।

ওজন কমিয়ে কী লাভ?
দৈহিক ওজন কমিয়ে অনেক রোগের ঝুঁকি বহুলাংশে কমানো যায়। মাত্র ৫ থেকে ১০ শতাংশ ওজন কমিয়ে অনেক স্বাস্থ্যসুবিধা পাওয়া যেতে পারে। যেমন ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপে ভোগার ঝুঁকি কমা, রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টরল কমতে সাহায্য করা, আর্থ্রাইটিসে ভোগার সম্ভাবনা কমা, শ্বাসপ্রশ্বাসের উন্নতি ঘটা ইত্যাদি। এতে রাতে ভালো ঘুমের সম্ভাবনা বাড়ে। অনেক ক্যানসারের ঝুঁকিও কমে।

ওজন কমাবেন কীভাবে?
আপনি যদি বুঝতে পারেন যে আপনার দৈহিক ওজন বেশি আছে, তবে এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। তিনি আপনার আপাত ও স্থায়ী শারীরিক ঝুঁকি বিবেচনা করে পালনীয় পন্থা বলে দেবেন।

ওজন কমানোর প্রথম ধাপ হলো জীবনধারায় কিছু পরিবর্তন আনা। সামগ্রিক জীবনে শৃঙ্খলাবোধ আনা, খাদ্য গ্রহণে ইতিবাচক পরিবর্তন ও নিয়মিত দৈহিক পরিশ্রম করা প্রথম ধাপ। ওজন কমাতে গিয়ে কখনোই খুব বেশি তাড়াহুড়া করা উচিত নয়। দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় কম ক্যালরি আছে, এমন খাদ্য বেশি রাখুন। এ রকম খাদ্যগুলো হলো শাকসবজি, কাঁচা টক ফল, গোটা শস্য ইত্যাদি। আগে সারা দিনে যে পরিমাণ খাদ্য গ্রহণ করতেন, এখনো সে পরিমাণেই খেতে পারবেন যদি খাদ্যতালিকায় উচ্চ ক্যালরিসম্পন্ন খাবার কমিয়ে আনা হয়।

খাদ্যের ক্যালরি কমানোর সহজ উপায়
যথাসম্ভব বর্জন করুন ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, ভাজা ও তৈলাক্ত খাবার। খাবারের শেষে মিষ্টি বা ডেজার্ট খাবেন না। চিনি বা মিষ্টি–জাতীয় খাদ্য যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। বেশি করে মাছ, শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে। মুরগির মাংস খেতে হবে চামড়া ছাড়া। গরু-খাসির মাংস কম খেতে হবে।

তেলে ভেজে না খেয়ে সিদ্ধ ডিম খেতে হবে। দুধ-চিনি ছাড়া হলে চা বা কফিতে কোনো বাধা নেই। কৃত্রিম চিনি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

রান্নায় বেশি পানি ব্যবহার করুন। তেল ও মসলা যতটা সম্ভব কম দিতে হবে। দই, নারকেল, ঘি ও ডালডা দিয়ে রান্না করা যাবে না।

দিনে ৬-৮ গ্লাস পানি পান করতে হবে। প্রতিবার খেতে বসার আগে ১ থেকে ২ গ্লাস পানি পান করলে পেট ভরার অনুভূতি থাকবে।

সরবর্জিত দুধ পান করতে হবে। তাজা ফল খেতে হবে, কাস্টার্ড বা জুস নয়।

দৈহিক শ্রম
প্রত্যহ কমপক্ষে ৩০ মিনিট শরীরচর্চা করার চেষ্টা করতে হবে। একটানা ৩০ মিনিট সম্ভব না হলে, ২-৩ বারে করা যেতে পারে। হাঁটা সবচেয়ে ভালো। বিকল্প হিসেবে ২০ থেকে ৩০ মিনিট সাঁতার কাটা, সাইকেল চালানো, ব্যাডমিন্টন বা টেনিস খেলার কথা ভাবা যেতে পারে।

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%AF%E0%A7%87%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%93%E0%A6%9C%E0%A6%A8-%E0%A6%95%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%A8

33
স্থূলতা ও ওজনাধিক্য বর্তমান বিশ্বের অন্যতম বড় স্বাস্থ্য সমস্যা। নগরায়ণ, কায়িক শ্রমের অভাব, খাদ্যাভ্যাসে বিপুল পরিবর্তন বিশ্বব্যাপী স্থূলতার হার বাড়িয়ে দিচ্ছে। আর স্থূলতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রোগগুলো, যেমন ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টেরল, হৃদ্‌রোগ, স্ট্রোক, আর্থ্রাইটিস ইত্যাদি। চিকিৎসাবিজ্ঞানে স্থূলতা বা ওবেসিটিকে একটি গুরুতর রোগ হিসেবেই ধরা হয়। আর বলা হয় এর যথাযথ সময়ে চিকিৎসার কথা।

আপনি কি স্থূল
একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ বা নারীর আদর্শ ওজন কত হওয়া উচিত, তা জানতে বিএমআই বা বডি মাস ইনডেক্সের পরিমাপ ব্যবহার করা হয়। ওজনকে (কিলোগ্রামে) উচ্চতার (মিটারে) দ্বিগুণ বা বর্গ (স্কয়ার) দিয়ে ভাগ করলেই এই বিএমআইয়ের হিসাব পাওয়া যায়। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের স্বাভাবিক বিএমআই হলো ১৮ দশমিক ৫ থেকে ২৪ দশমিক ৯ পর্যন্ত। বিএমআই ২৫–এর ওপর হলে সেটি ওভারওয়েট বা ওজনাধিক্য। বিএমআই যদি ৩০–এর ওপর হয়, তবে সেটি ওবেস বা স্থূল। আর ৪০–এর ওপর বিএমআই হলে তা মরবিড ওবেস বা গুরুতর রকমের স্থূল বলা যায়।

স্থূলতার আরেকটি পরিমাপ হলো পেটের মাপ বা ওয়েস্ট সারকামফেরেন্স। এশীয় পুরুষদের পেট বা ভুঁড়ির মাপ ৯০ সেন্টিমিটারের বেশি আর নারীদের ৮০ সেন্টিমিটারের বেশি হলে তাকে স্থূল ধরা হয়। এশীয়দের কম উচ্চতার জন্য বিএমআই স্বাভাবিক থাকলেও পেটের মাপ প্রায়ই বেশি পাওয়া যায়। আর এই উদরের চর্বি বা অ্যাবডোমিনাল ফ্যাট নানা রকমের রোগের জন্য দায়ী।

কেন ওজন বাড়ে
ওবেসিটি বা ওজন বাড়ার পেছনে মূল কারণ হলো ক্যালরি গ্রহণ আর ক্যালরি ক্ষয়ের মধ্যে অসামঞ্জস্য। আমরা দৈনিক যত ক্যালরি খেয়ে থাকি, সে অনুযায়ী খরচ না করলে বা পরিশ্রম না করলে সেই অতিরিক্ত ক্যালরি মেদ বা চর্বি হিসেবে দিন দিন জমা হতে থাকে।

দ্রুত নগরায়ণ আর যন্ত্রনির্ভরতার কারণে কায়িক পরিশ্রম কমছে মানুষের, অপর দিকে বাড়ছে উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার (ফাস্ট ফুড, ডেজার্ট, কোমল পানীয়) গ্রহণের প্রবণতা। শৈশব থেকেই মন্দ খাদ্যাভ্যাস আর কম পরিশ্রম
স্থূলতার ঝুঁকিতে ঠেলে দিচ্ছে বর্তমান বিশ্বের মানুষকে। এ ছাড়া খেলাধুলার স্থানের অভাব, অফিসে দিনমান টেবিলে বসে কাজ, কম্পিউটার-সেলফোন বা গাড়ি লিফটের প্রতি অতিনির্ভরতা, স্ট্রেস ইত্যাদি পরোক্ষভাবে স্থূলতার জন্য
দায়ী।

কিছু হরমোনজনিত রোগ স্থূলতার জন্য দায়ী হতে পারে। যেমন শরীরে স্টেরয়েড হরমোনের আধিক্য (কুশিং সিনড্রোম), হাইপোথাইরয়েডিজম, পলিসিস্টিক ওভারি ডিজিজ ইত্যাদি।

কিছু ওষুধ দীর্ঘদিন ব্যবহারের কারণেও ওজন বাড়ে। যেমন স্টেরয়েড–জাতীয় ওষুধ, ইনসুলিন, ডায়াবেটিসের সালফোনিল ইউরিয়া ওষুধ, অ্যান্টিসাইকোটিক গ্রুপের কিছু ওষুধ, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি ইত্যাদি। কিছু জিনগত রোগে (যেমন প্রেডার উইলি সিনড্রোম) আক্রান্ত ব্যক্তি অস্বাভাবিক রকম স্থূল হতে পারে।

স্থূলতার সমস্যা
টাইপ–২ ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদ্‌রোগ, স্ট্রোক বা পক্ষাঘাত ইত্যাদি রোগের ঝুঁকি বাড়ায় শরীরের মেদ। স্থূলতার কারণে হাঁটুতে অস্টিওআর্থ্রাইটিস বা কোমরে ব্যথা হয়। স্লিপ এপনিয়ার প্রধানতম কারণ হলো স্থূলতা। এমনকি ব্রেস্ট ক্যানসার, কোলন ক্যানসারসহ বেশ কিছু ক্যানসারের পেছনেও স্থূলতাকে দায়ী করা হয়। পিত্তথলিতে পাথর, ইনফারটিলিটি বা বন্ধ্যত্ব, ডিপ্রেশন ইত্যাদি সমস্যার সঙ্গেও স্থূলতার সম্পৃক্ততা রয়েছে।

কেবল ওজন কমানোর মাধ্যমে অনেক রোগের ঝুঁকি কমানো যায়। বিজ্ঞানীরা বলেন, ৫ থেকে ১০ শতাংশ ওজন কমাতে পারলেই আপনার রক্তচাপ, রক্তের শর্করা ও রক্তের চর্বির অভাবনীয় উন্নতি দেখতে পাবেন। কমে যাবে ক্যানসারের ঝুঁকিও।

স্থূলতার চিকিৎসা
বিএমআই ৩০–এর বেশি হলে ওজন কমাতে খাদ্যাভ্যাস ও ব্যায়ামের পাশাপাশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শে চিকিৎসা নিতে পারবেন। তবে কারও যদি কো-মরবিডিটি থাকে (যেমন অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ বা হৃদ্‌রোগ, স্লিপ অ্যাপনিয়া) তাহলে বিএমআই ২৭–এর ওপরও এই চিকিৎসা শুরু করা যেতে পারে।

ওবিসিটির তিন ধরনের চিকিৎসা স্বীকৃত। মুখে খাবার ওষুধ, ইনজেকশন আর সার্জারি। কয়েক রকমের মুখে খাবার ওষুধ (যেমন ওরলিস্ট্যাট, টপিরামেট, বুপ্রোপ্রিওন ইত্যাদি) এফডিএ দ্বারা স্বীকৃত। লিরাগ্লুটাইড, সিমাগ্লুটাইড ইত্যাদি ইনজেকশন আকারে ব্যবহৃত হয়—এগুলো আসলে গ্লুকাগন লাইক পেপটাইড নামের হরমোন গোত্রের ওষুধ।

বিএমআই ৪০–এর বেশি কিংবা আনুষঙ্গিক রোগ থাকলে বিএমআই ৩৫–এর বেশি হলেও ব্যারিয়াট্রিক সার্জারি করা যাবে। বাংলাদেশে এ ধরনের শল্যচিকিৎসা শুরু হয়েছে।

ওজন কমাবেন কীভাবে
দৈনিক ক্যালরি গ্রহণ কমিয়ে আর ক্যালরি ক্ষয় বাড়িয়েই আপনি ওজন কমাতে পারবেন। তার জন্য প্রথমে চাই মোটিভেশন ও সদিচ্ছা। হঠাৎ করে বা রাতারাতি ওজন কমানোর চেষ্টা করবেন না। দীর্ঘ মেয়াদে পরিকল্পনা করুন। কেবল ওজন কমালেই চলবে না, সেই কম ওজন ধরে রাখাও চাই।

উচ্চতা অনুযায়ী আপনার আদর্শ ওজন কত হওয়া উচিত, তা আগে জেনে নিন। সেটা হলো আপনার লক্ষ্য। লক্ষ্য যদি খুব দূরে হয়, মানে আপনার ওজন অতিরিক্ত বেশি হয়, তবে প্রথমে ৫ শতাংশ ওজন কমানোর লক্ষ্য ঠিক করুন।

আদর্শ ওজন অনুযায়ী একটি ক্যালরি চার্ট বা খাদ্যতালিকা করে নিন। প্রতিদিনের ক্যালরি থেকে ৫০০ থেকে ৬০০ ক্যালরি কমিয়ে ফেললে ওজন কমতে শুরু করবে।

শুধু ক্যালরি কমালেই হবে না; খাবার বাছাই করতে হবে সযত্নে। জটিল ও আঁশযুক্ত শর্করা গ্রহণ করবেন গ্লুকোজের উৎস হিসেবে। ভালো মানের প্রোটিন খেতে হবে। রেড মিট কমিয়ে মাছ, মুরগি, ডাল, বীজ, ডিম, দুধ থেকে আমিষ নেওয়ার চেষ্টা করুন। ফ্যাট বা চর্বি গ্রহণ কমাতে হবে দৈনিক ২০ শতাংশ। সেই চর্বি অসম্পৃক্ত চর্বি বা ওমেগা ৩ সমৃদ্ধ হলে ভালো। সামুদ্রিক মাছ, বাদাম ইত্যাদিতে আছে এই ওমেগা ৩। সম্পৃক্ত চর্বি (ঘি, মাখন, ডালডা, মাংসের গায়ে লেগে থাকা চর্বি) বাদ দিতে হবে। উচ্চ ক্যালরিযুক্ত যেকোনো খাবার যেমন ফাস্ট ফুড, কোমল পানীয়, মিষ্টি, চকলেট, ট্রান্সফ্যাট বাদ দিতে হবে। দিনে অন্তত ৬ গ্রাম ফাইবার বা আঁশ গ্রহণ করতে হবে।

দীর্ঘদিন কম ওজন ধরে রাখার জন্য সুষম খাদ্যাভ্যাস সবচেয়ে ভালো। ভেরি লো ক্যালরি ডায়েট, লো কার্ব বা কিটো ইত্যাদি জনপ্রিয় ডায়েটে প্রাথমিকভাবে ওজন কমলেও ১২ থেকে ২৪ মাস পর মেটাবলিক, কার্ডিওভাসকুলার কোনো উপকার পাওয়া যায়নি। আর মনে রাখবেন, কেবল ডায়েটের মাধ্যমে দীর্ঘ সময় ওজন কমানোর প্রবণতা ধরে রাখা সম্ভব নয়। এর সঙ্গে চাই ব্যায়াম।

প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫ মিনিট বা সপ্তাহে কমপক্ষে ১৫০ মিনিট ব্যায়াম বা অ্যারোবিক এক্সারসাইজ করতে হবে। দ্রুত হাঁটা, জগিং, সাঁতার, সাইকেল চালনা ইত্যাদি হলো অ্যারোবিক ব্যায়াম।

ব্যায়ামের পাশাপাশি দৈনন্দিন প্রচেষ্টায়ও কিছু লাভ আছে। যেমন অফিসে কাজের ফাঁকে পায়চারি, বাগানে বা গৃহকর্মে অংশ নেওয়া, লিফট ব্যবহার না করে সিঁড়ি ব্যবহার করা, গাড়ির বদলে হেঁটে বাজার করা ইত্যাদিতেও ক্যালরি ক্ষয় হয়। দৈনিক দশ হাজার পদক্ষেপ বা স্টেপস হাঁটাহাঁটির চেষ্টা করুন সব মিলিয়ে।

Ref: https://www.prothomalo.com/feature/pro-health/%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%A6-%E0%A6%AD%E0%A7%81%E0%A6%81%E0%A7%9C%E0%A6%BF-%E0%A6%95%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%AC-%E0%A6%95%E0%A7%80%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87

34
পেঁয়াজ একটি সর্বজন পরিচিত কন্দমূল। সূর্যের কিরণ বিশেষভাবে গ্রহণ করতে পারে বলেই এর পাতা গাঢ় সবুজ। পেঁয়াজ প্রাকৃতিকভাবে ভেষজগুণের আধার; বাংলার ঘরে ঘরে এটি কাঁচা যেমন খাওয়া হয়, তেমনি রান্নায় ব্যবহার হয়ে থাকে। পেঁয়াজের সবুজ গাছ ও কলি আমরা রান্না করে খেয়ে থাকি। তবে এই কলি সামান্য লবণ মাখিয়ে চিবিয়ে রস খেয়ে ছিবড়া ফেলে দিলে অনেক বেশি উপকার পাওয়া যায়।

পেঁয়াজ কলি চিবিয়ে খেলে বেশি উপকার

 পেঁয়াজে আছে ভিটামিন বি১ (থায়ামিন), বি২ (রিবোফ্লাবিন), বি৩ (নিয়াসিন), বি৫ (প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড), বি৬, বি৯ (ফোলেট) ও ভিটামিন সি। পেঁয়াজ শরীরে শক্তি জোগায়, বিভিন্ন ভিটামিনের গুণ দিয়ে দেহকে সাবলীল রাখতে কাজ করে, হার্টের কার্যক্ষমতা ও কার্ডিভাসকুলার ফাংশন ঠিকঠাক রাখতে সাহায্য করে।

নানা রোগের প্রতিকার হিসেবে পেঁয়াজ ব্যবহার হয়ে থাকে; যেমন:

সর্দি–জ্বর: শরীর গরম, কপাল ভার, নাক বন্ধ, মনে হয় জ্বর আসছে। সে ক্ষেত্রে পেঁয়াজের রস নাকে একটু টানলে সর্দি বেরিয়ে যাবে এবং জ্বর ভাবও চলে যাবে।

হার্টের সমস্যয়ও কার্যকর
হার্টের সমস্যা: যাঁদের কার্ডিভাসকুলার ফাংশনে সমস্যা আছে, তাঁরা প্রতিদিন দুই চা–চামচ পেঁয়াজের রস খেলে সমস্যা সমাধানের পথে হাঁটবেন, আর নিয়মিত খেলে হার্টের সমস্যা হবে না। হার্টের সমস্যায় প্রতিদিন খাবারের আগে সালাদ খাওয়া উত্তম অভ্যাস, এই সালাদে একটি বড় উপাদান পেঁয়াজ থাকা জরুরি।

চোখের জ্যোতি ঠিক রাখে: নিয়মিত পেঁয়াজের রস খেলে যাঁদের দৃষ্টির সমস্যা আছে, তাঁদের সেরে যাবে (বয়সজনিত ক্ষীণ দৃষ্টি ছাড়া)।

পেঁয়াজের রস দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়

অ্যাজমার সমস্যা: যাঁদের অ্যাজমার সমস্যা আছে, তাঁরা নিয়মিত দুবেলা এক চা–চামচ করে পেঁয়াজের রস খেলে অ্যাজমার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। বিশেষ করে রাতে শোবার আগে এক কাপ গরম পানিতে এক চা–চামচের চার ভাগের এক ভাগ হলুদের গুঁড়া, এক চা–চামচ পেঁয়াজের রস মিশিয়ে খেলে অ্যাজমাজনিত সমস্যার উপকার পাবেন।

মল অপরিষ্কার হলে: এক টেবিল চামচ পেঁয়াজের রস, সমপরিমাণ গরম পানি মিশিয়ে পান করলে পেট পরিষ্কার হবে। এটা দুপুরের খাবারের পরে খেলে উপকার পাওয়া যায়।

কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে

প্রস্রাব ধারণক্ষমতা বাড়াতে: প্রস্রাবের বেগ হলে আর দাঁড়ানো যায় না, দেরি হলে বেসামাল হয়ে কয়েক ফোঁটা বেরিয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে ১ চা–চামচ পেঁয়াজের রস আধা কাপ পানিতে মিশিয়ে রাতে শোবার আগে খেতে হবে। ৪ সপ্তাহ খেলে প্রস্রাবের ধারণক্ষমতা বাড়বে, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

নাক দিয়ে রক্ত পড়লে: শরীর গরম হয়ে অনেক সময় নাক দিয়ে রক্ত পড়ে। পেঁয়াজের রস নাকে টানলে রক্ত পড়া বন্ধ হবে।

পেঁয়াজের রস নাকে টানলে রক্ত পড়া বন্ধ হবে

অর্শ: অর্শের কারণে রক্ত পড়তে থাকলে শরীর দুর্বল হয়ে যায়। এ ক্ষেত্রে ১ চা–চামচ পেঁয়াজের রস সমপরিমাণ পানি মিশিয়ে খেলে ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে যাবে। দুপুরে সবজি, সালাদে পেঁয়াজসহ খেতে পারলে কোষ্ঠকাঠিন্য কমতে থাকবে এবং পায়ুপথের যেকোনো সমস্যাই সমাধান হতে থাকবে।

অত্যধিক গরমে: প্রচণ্ড গরমে পিপাসা পেলে হঠাৎ পানি পান করলে সর্দি হয়। এ সময় খাবার অথবা সালাদের সঙ্গে কাঁচা পেঁয়াজ খেলে পিপাসা কম লাগবে এবং পথেঘাটে হিটস্ট্রোকের ভয় থাকে না।

হেঁচকি উঠলে: ১ চা–চামচ পেঁয়াজের রস ২ চা–চামচ পানি মিশিয়ে ২-৩ বার একটু একটু করে খেলে হেঁচকি ওঠা বন্ধ হবে।

হেঁচকি ওঠা বন্ধ করে

কানে পুঁজ: অনেক সময় বাচ্চাদের কানে ঘা হয়ে পুঁজ হয়; এ ক্ষেত্রে পেঁয়াজের রস একটু গরম করে ২-১ ফোঁটা কানে দিলে ঘা সেরে যায়। আয়ুর্বেদ নিয়মানুসারে, এটা কানের জন্য অব্যর্থ ওষুধ।

বমি বমি ভাব বা বমি হলে: ৪-৫ ফোঁটা পেঁয়াজের রস ১ কাপ কুসুম গরম পানিতে মিশিয়ে পান করলে বমি বন্ধ হবে।

বিষফোড়া ফাটাতে: যেকোনো জায়গায় হোক না কেন, ফোড়া টন টন করছে, কিন্তু ফাটছে না। পেঁয়াজের রস একটু গরম করে লাগিয়ে দিলে ওই বিষফোড়া ফেটে যাবে।

মাথাধরায়: সর্দি–জ্বরে মাথাব্যথা হলে ২-৩ ফোঁটা পেঁয়াজের রস নাকে টানলে তৎক্ষণাৎ মাথাধরা এবং ব্যথা কমে যাবে।

মাথাধরা সারায় পেঁয়াজের রস
মুখে ইনফেকশন: মুখের ভেতর এবং দাঁতের অনেক রোগ ও ইনফেকশন থাকলে তা থেকে বাঁচা যায়, যদি প্রতিদিন ১-২টি করে কাঁচা পেঁয়াজ খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তোলা যায়।

পেঁয়াজের গন্ধ কমাতে
মানুষের শরীরের যে ছয়টি রসের প্রয়োজন (নোনতা, মিষ্টি এবং টক), তার মধ্যে পেঁয়াজ ৩টি দিতে পারে। কিন্তু একটু বেশি ব্যবহার করলে মুখে গন্ধ, নিশ্বাসে গন্ধ থেকে যায়; ফলে মানুষের মধ্যে কথা বলার সময় অস্বস্তি বোধ হয়। এই গন্ধ তাড়ানোর জন্য পেঁয়াজকে চার ভাগ করে সারা রাত টক দইয়ে ভিজিয়ে রাখলে গন্ধ কমে এবং গুণ যোগ হয়ে এক অমূল্য খাদ্যদ্রব্যে পরিণত হবে।

উপকার পেতে হলে পেঁয়াজ কাঁচা খাওয়াই উত্তম

পেঁয়াজ দিয়ে আপনি উপকার পেতে হলে কাঁচা খাওয়াই জরুরি, অথবা রস করে খেতে পারেন। আমরা সাধারণত রান্নায় যে পেঁয়াজ খাই, তা দিয়ে উপকার হলেও ঔষধি গুণের উপকার পাওয়া যাবে না। তাই প্রতিদিন পেঁয়াজসহ সালাদ খাওয়ার অভ্যাস করতে পারলে শরীর সুস্থতা থাকবে, কোনো রোগে আক্রান্ত থাকলে সেটাও নিরাময় হবে।

লেখক: খাদ্য, পথ্য ও আকুপ্রেসার বিশেষজ্ঞ

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%81%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9D%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%9C-%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%97-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A7%9F%E0%A6%87-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%9C

35
সময়টা এখন ডাঁটায় শজনে গাছ ভরে যাওয়ার। বাংলাদেশের জনপ্রিয় সবজির মধ্যে এটি অন্যতম। নানা রকম সুস্বাদু পদ বানানো হয় এই সবজি দিয়ে। শজনে গাছের বৈজ্ঞানিক নাম মরিঙ্গা ওলেইফেরা। আজ থেকে কয়েক হাজার বছর আগে ভারতে এ গাছ জন্মাত। শজনে গাছের ফল, ফুল, পাতা, শিকড় খাদ্য এবং ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করার পাশাপাশি এর কাঠ দিয়ে ঘর-বাড়ি বানানো হতো।

আয়ুর্বেদ ছাড়া মধ্যপ্রাচ্যের ঐতিহ্যবাহী ইউনানি চিকিৎসাব্যবস্থায়ও শজনের ব্যবহার করা হতো। এ উদ্ভিদ খরাসহিষ্ণু এবং গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলে বেশি জন্মে। বর্তমানে বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলঙ্কা, মালেয়শিয়া, ইন্দোনেশিয়া, তাইওয়ানের মতো দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ ছাড়াও ক্যারিবিয়ান অঞ্চল, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল, দক্ষিণ আমেরিকা ও আফ্রিকার কিছু দেশে শজনে গাছ পাওয়া যায়। আমেরিকার হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে বাণিজ্যিকভাবে এর চাষ করা হয়।

আয়ুর্বেদশাস্ত্রমতে, শজনে গাছ দিয়ে প্রায় ৩০০ রোগের চিকিৎসা করা যায়। এ জন্য একে ‘বিস্ময় বৃক্ষ’ বলা হতো। শজনে ডাঁটাকে অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের ভান্ডারও বলা যেতে পারে।

পুষ্টি উপাদান
শজনে ডাঁটায় আছে ফাইবার, প্রোটিন এবং অনেক খনিজ উপাদান। ১০০ গ্রাম শজনে ডাঁটায় শক্তির পরিমাণ ৬৪ কিলোক্যালরি। আর আছে কার্বোহাইড্রেট ৮.২৮ গ্রাম, ডায়াটেরি ফাইবার ২ গ্রাম, ফ্যাট ১.৪০ গ্রাম, প্রোটিন ৯.৪০ গ্রাম, ভিটামিন এ ৩৭৮ মাইক্রোগ্রাম, থায়ামিন ০.২৫৭ মিলিগ্রাম, রিবোফ্লাভিন ০.৬৬০ মিলিগ্রাম, নায়াসিন ২.২২০ মিলিগ্রাম, ফোলেট ৪০ মাইক্রোগ্রাম, ভিটামিন সি ৫১.৭ মিলিগ্রাম। এ ছাড়া আছে ক্যালসিয়াম ১৮৫ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ১৪৭ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ১১২ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ৩৩৭ মিলিগ্রাম।
হাড়ের স্বাস্থ্য সুরক্ষায়
শজনে ডাঁটা প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম, আয়রন ও ফসফরাসে ভরপুর। এই খনিজ উপাদান শিশুদের মজবুত হাড় গঠনে সহায়তা করে। বয়স্ক ব্যক্তিদের প্রতিদিনের খাবারে শজনে ডাঁটা রাখা উচিত। কারণ, এটি হাড়ের ঘনত্ব পুনরুদ্ধার করে এবং অস্টিওপোরোসিসের লক্ষণগুলো কমিয়ে থাকে। শজনে ডাঁটার অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান বাতের চিকিৎসা এবং হাড়ের ছোটখাট ক্ষত নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে।

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বৃদ্ধিতে
এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট। এগুলো সাধারণ ঠান্ডা, সর্দি, কাশি, ফ্লুর জীবাণুর সংক্রমণের বিরুদ্ধের লড়াই করে। শজনে ডাঁটার অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান হাঁপানি, কাশি ও অন্যান্য শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। সাধারণ কাশি, জ্বর বা অন্যান্য অসুস্থতায় শজনে ডাঁটার তরকারি বা স্যুপ খেলে দ্রুত উপশম পাওয়া যায়।

অন্ত্রের স্বাস্থ্য রক্ষায়
শজনে ডাঁটা নায়াসিন, থায়ামিন, রিবোফ্ল্যাভিন এবং ভিটামিন বি১২-এর মতো শক্তিশালী ভিটামিন বি দ্বারা সমৃদ্ধ। এরা পরিপাকতন্ত্র থেকে পাচকরস নিঃসরণ করে পরিপাকক্রিয়াকে সহজ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এ ছাড়া এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ডায়াটেরি ফাইবার, যা অন্ত্রের গতিবিধি নিয়মিত করে এর স্বাস্থ্য বজায় রাখে। যাঁদের কোষ্ঠকাঠিন্য বা ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোমের মতো সমস্যা আছে, তাঁরা নিয়মিত শজনে ডাঁটা খেলে উপকৃত হবেন।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে
শজনে ডাঁটায় রয়েছে নায়াজিমিনিন এবং আইসোথিয়োকায়ান্টের মতো বায়ো–অ্যাক্টিভ যৌগ। এই যৌগ দুটি ধমনিগুলোকে প্রসারিত করে উচ্চ রক্তচাপ বিকাশের সম্ভাবনা হ্রাসে বিশেষভাবে সহায়তা করে। এ ছাড়া এর অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট হৃদ্‌যন্ত্রের রক্ত ও পুষ্টির সংবহনকে উন্নত করে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

শজনে ডাঁটা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে
কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য
কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, শজনে ডাঁটা খেলে কিডনি ও মূত্রাশয়ে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমে। এর ভালো পরিমাণের অ্যান্টি–অক্সিডেন্টের উপস্থিতি কিডনি থেকে বিষাক্ত পদার্থ বা টক্সিন দূর করতে সহায়তা করতে পারে।

গর্ভবতী মায়েদের জন্য
শজনে ডাঁটায় রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও কে আর ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ও ফোলেটের মতো খনিজ উপাদান। এসব উপাদান গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষভাবে প্রয়োজনীয়। নিয়মিত শজনে ডাঁটা খেলে গর্ভবতী মায়েদের মর্নিং সিকনেসের মতো সমস্যা কম দেখা দেয়। এটি তাঁদের শরীরে বাড়তি শক্তি জোগায়। একটি গবেষণায় উঠে এসেছে যে এতে অতিমাত্রায় ফোলেট থাকার কারণে এটি খেলে স্পিনা বিফিডারের ঝুঁকি সহজেই এড়ানো সম্ভব। স্পিনা বিফিডার হলে নবজাতকের মারাত্মক জন্মগত ত্রুটি হতে পারে।

এ ছাড়া চোখের সমস্যা সারাতে ও দৃষ্টি বাড়াতে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে, ক্যানসারের ঝুঁকি হ্রাসে এবং যকৃতের সুস্থতায় শজনে ডাঁটা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে।

যকৃতের সুস্থতায় শজনে ডাঁটা বিশেষ উপকারি
যকৃতের সুস্থতায় শজনে ডাঁটা বিশেষ উপকারিছবি: উইকিপিডিয়া
সংরক্ষণ
শজনে ডাঁটা মৌসুমি সবজি। গরমের পর আমাদের দেশে এর দেখা পাওয়ার সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ। তাই চাইলেই কাঁচা, হালকা ভেপে বা সিদ্ধ করে ডিপ ফ্রিজে রেখে সংরক্ষণ করতে পারেন।

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%B6%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%A1%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%A3%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%A3

36
ওজন নিয়ন্ত্রণে অনেকে প্রথমেই ভাত বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ভাত বাঙালির প্রধান খাদ্য। আমাদের খাবারের পদ বা বৈচিত্র্যও আবর্তিত হয় ভাতকে ঘিরে। কাজেই ভাত একেবারে বন্ধ করা আমাদের পক্ষে মুশকিল। তাই কেউ কেউ ধৈর্য হারিয়ে ফেলেন, দীর্ঘ মেয়াদে ডায়েট ধরে রাখতে পারেন না। আবার অনেকে ভাত না খেলেও সেই ঘাটতি পূরণে অন্যান্য শর্করা বেশি খেতে থাকেন। তাই দেশীয় আচার–সংস্কৃতি ও অভ্যাস মেনেই কীভাবে খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করা যায়, তা শিখতে হবে। আসুন জেনে নিই খাবারের তালিকায় ভাত রেখেও কীভাবে এই কাজ করা যায়।

ভাতের পরিমাণ কমিয়ে ফেলুন। দুপুরে অথবা রাতে একবেলাই ভাত রাখুন, তা–ও মেপে।

সাদা চালের পরিবর্তে লাল চালে ফাইবার বেশি, ক্যালরি কম। তাই লাল চালের ভাত খাওয়ার চেষ্টা করুন।

যে চালে অ্যামাইলোজ বেশি (যেমন বাসমতী), তা ঝরঝরে হয় এবং তাতে শর্করা কম তাড়াতাড়ি বাড়ে। যেসব চালের ভাত আঠালো, তাতে অ্যামাইলোজ কম আর অ্যামাইলোপ্যাকটিন বেশি। এতে শর্করা দ্রুত বাড়ে।

ভাতের পুষ্টিগুণ বজায় রাখতে ভাতের মাড় না ফেলে খাওয়া ভালো। এতে পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিন ও খনিজ উপাদান অটুট থাকে।

ভাত খাওয়ার পরপরই ঘুমাতে যাওয়া ঠিক নয়। খাওয়ার পর ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট নানা ধরনের কাজ ও হাঁটাহাঁটি করুন, যাতে তা বিপাক হওয়ার সময় পায়।

থালার এক–চতুর্থাংশ ভাত নিন। থালার অর্ধেকটা জুড়ে থাকবে শাকসবজি আর সালাদ। বাকি এক–চতুর্থাংশ থাকবে প্রোটিন বা মাছ–মাংস।

খাবারের পদ বেশি থাকলে ভাত বেশি খাওয়া হয়ে যায়। বিশেষ করে ভর্তা, ভাজির ক্ষেত্রে ভাত খাওয়ার পরিমাণ বেড়ে যায়। কাজেই খাবারের পদ কম রাখার চেষ্টা করতে হবে। প্রতিদিন যথেষ্ট শাকসবজির সঙ্গে একটি আমিষ (মাছ বা মাংস বা ডিম) রাখতে হবে। সঙ্গে ডাল রাখলে ভালো।

ফ্রাইড রাইস, পোলাও, বিরিয়ানি ইত্যাদিতে ক্যালরি বেশি। এগুলো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করতে হবে।

ভাত কমিয়ে চাহিদা পূরণে অন্যান্য উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার, যেমন ফাস্ট ফুড, চকলেট, আইসক্রিম, পরোটা, ব্রেড, অনেকগুলো রুটি খেলে তাতে কোনো সুফল পাওয়া যায় না।

ওজন নিয়ন্ত্রণে ভাত পুরোপুরি বাদ দিতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। বরং দৈনিক ক্যালরি চাহিদার ৪০-৫০ শতাংশ গোটা শস্য থেকে নেওয়া ভালো।
ভাতের কয়েকটি গুণ
ভাতে গ্লুটেন থাকে না। এটি সহজপাচ্য। যাঁদের হজমের সমস্যা আছে, তাঁদের জন্য খাবার হিসেবে ভাত ভালো।

ভাতে সোডিয়াম ও কোলেস্টেরল নেই। তাই উচ্চ রক্তচাপ ও হৃদ্‌রোগীদের খেতে বাধা নেই। কিন্তু অতিরিক্ত ভাত ওজন বাড়ায়। এর শর্করা চর্বি হিসেবে শরীরে জমা হয়। তাই পরিমাণে কম খেতে হবে।

লাল চালে আঁশ, অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট, নিয়াসিন, থিয়ামিন ও ম্যাঙ্গানিজ বেশি। এগুলো বিপাকক্রিয়া ও স্নায়ুতন্ত্রের নানা কাজে লাগে।

ভাতে সেলেনিয়াম ও ম্যাগনেসিয়ামও আছে। এ ছাড়া রয়েছে রিবোফ্লেবিন, প্যানটথিনিক অ্যাসিড, ফসফরাস, কপার ইত্যাদি। এগুলো শরীরের জন্য উপকারী উপাদান।

কাজেই ওজন নিয়ন্ত্রণে ভাত পুরোপুরি বাদ দিতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। বরং দৈনিক ক্যালরি চাহিদার ৪০-৫০ শতাংশ গোটা শস্য থেকে নেওয়া ভালো। শস্যজাতীয় খাবার দিনের পর দিন বন্ধ রাখলে নানা রকম পুষ্টি ও ভিটামিন-খনিজের অভাব দেখা দিতে পারে। পাশাপাশি গড়ে তুলতে হবে সুষম খাদ্যাভ্যাস।

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%A4-%E0%A6%96%E0%A7%87%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%93-%E0%A6%93%E0%A6%9C%E0%A6%A8-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A3

37
আকস্মিক দুর্ঘটনায় বা মুহূর্তের অসতর্কতায় পুড়ে যাওয়ার মতো মারাত্মক ও যন্ত্রণাদায়ক পরিস্থিতি ঘটে যেতে পারে। রান্নাঘর, মোমবাতি, হারিকেন, মশা মারার কয়েল, গরম পানি, গরম পানীয় এমনকি হ্যান্ড স্যানিটাইজারের মতো সাধারণ দৈনন্দিন বস্তু ব্যবহারের অসতর্কতা থেকেও হতে পারে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। বৈদ্যুতিক সামগ্রী ব্যবহারে অসতর্কতাও পুড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ। এমন দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করাই কাম্য। তারপরও যদি দুর্ঘটনা ঘটে যায়, জরুরিভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করতে হবে। এতে ক্ষতি অনেকটাই কমিয়ে আনা সম্ভব।

হঠাৎ অগ্নিদুর্ঘটনায়
পুড়ে গেলে প্রথম কাজ হলো, পুড়ে যাওয়ার উৎস থেকে সরে যাওয়া। ঘরে, কর্মক্ষেত্রে বা যেকোনো জায়গায় আগুন লেগে গেলে পানি দিয়ে আগুন নেভাতে হবে। পর্যাপ্ত পানি পাওয়া না গেলে পুরু কম্বল বা পুরু কাঁথা দিয়ে চেপে আগুন নেভাতে হবে। বিদ্যুতায়িত হলে দ্রুত বিদ্যুতের মেইন সুইচ বন্ধ করার ব্যবস্থা নিতে হবে। শরীরে আগুন লেগে গেলে মাটিতে গড়িয়েও আগুন নেভানো সম্ভব। এরপর যা করতে হবে, তা হলো আহত স্থানে প্রচুর পানি ঢালা। আক্রান্ত স্থানটি প্রবহমান পানিতে (ট্যাপের পানি) ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট রাখতে হবে। এরপর পরিষ্কার, সুতি কাপড় দিয়ে আক্রান্ত স্থানটি ঢেকে নিয়ে হাসপাতালে যান। আক্রান্তকে বারবার পানি বা স্যালাইন পান করতে দিন। হাত কিংবা পা পুড়ে গেলে আক্রান্ত হাত কিংবা পা যতটুকু সম্ভব, কম নাড়াচাড়া করতে হবে। যেমন পায়ের কোনো অংশ পুড়ে গেলে রোগীকে বসিয়ে বা শুইয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে হবে এবং এ ক্ষেত্রে হাসপাতালে নেওয়ার সময়ও রোগীকে হাঁটিয়ে নেওয়া উচিত নয়।

চিকিৎসা জরুরি
ত্বকের উপরিভাগের পোড়ার (অগভীর পোড়া) ক্ষেত্রে সাধারণত প্রচণ্ড জ্বালাপোড়া হয়ে থাকে, আক্রান্ত স্থান লাল হয়ে যায়, সেখানে ফোসকাও পড়তে পারে। গভীরভাবে পুড়ে গেলে জ্বালাপোড়া তেমন হয় না, আক্রান্ত স্থান সাদাটে হয়ে যায়, ফোসকা পড়ে না। তবে পোড়া ক্ষত গভীর বা অগভীর যে রকমই হোক না কেন, শরীরের যত কম বা বেশি অংশই পুড়ে যাক না কেন, প্রাথমিক চিকিৎসা শেষ করে কাছের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি কেন্দ্রে যেতে হবে। সেই সুযোগ না পেলে নিকটস্থ শল্যচিকিৎসকের (সার্জন) শরণাপন্ন হতে হবে। সেই সুযোগও না পেলে যেকোনো হাসপাতালের জরুরি বিভাগ বা চিকিৎসকের কাছে গিয়ে ক্ষতের মাত্রা নির্ণয় করে যতটা চিকিৎসাসেবা গ্রহণের সুযোগ আছে, সেটি নিয়ে এরপর প্রয়োজনমতো বিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। শিশুদের শরীরের কম অংশ পুড়লেও তা মারাত্মক হতে পারে, তাই সতর্ক থাকুন।

মারাত্মক দুর্ঘটনায়
যেকোনো দুর্ঘটনায় মাথা ঠান্ডা রেখে জীবন বাঁচাতে হবে। অগ্নিদুর্ঘটনায় পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত লাগতে পারে, হাত-পা ভেঙে যেতে পারে, রক্তক্ষরণ হতে পারে। মাথায় আঘাত লাগলে, হাড় ভেঙে গেলে কিংবা অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ হলে অনেক সময় তা বাইরে থেকে বোঝা না-ও যেতে পারে। তাই বড় ধরনের দুর্ঘটনায় অবশ্যই জরুরি ভিত্তিতে নিকটস্থ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে রোগীকে নিয়ে যেতে হবে। শরীরের ১৫ শতাংশের বেশি অংশ পুড়ে যাওয়া (শিশুদের সঙ্গে ১০ শতাংশের বেশি হলেই) তা মারাত্মক ধরনের তীব্র পোড়া। এ ছাড়া চোখ, কান, মুখমণ্ডল, গলা, আঙুল, কবজি, হাত-পায়ের তালু, পায়ুপথ ও এর আশপাশের অংশ অল্প পুড়ে গেলেও তা মারাত্মক।

যা করবেন, যা করবেন না
প্রাথমিক অবস্থায় আক্রান্ত স্থানে স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি ছাড়া অন্য কিছুই ব্যবহার করবেন না। ঠান্ডা পানি, বরফ, কুসুম গরম পানি—কোনোটাই পুড়ে যাওয়া স্থানের জন্য উপযোগী নয়। খুব ঠান্ডা পানি দিলে আক্রান্ত স্থানের কোষগুচ্ছ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে।

ভিত্তিহীন তথ্যের ওপর নির্ভর করবেন না। বাড়িতে নিজেরা বুদ্ধি করে কিংবা কারও কথায় প্ররোচিত হয়ে লবণ মেশানো পানি, ভাতের মাড়, তেল, টুথপেস্ট, ডিম—এ রকম কোনো কিছুই প্রয়োগ করা যাবে না।

কাপড় বা কোনো কিছু দিয়ে আক্রান্ত স্থান বাঁধবেন না।

আক্রান্ত স্থানে সিলভার সালফাডায়াজিন মলম প্রয়োগ করা যায়, কিন্তু এ ছাড়া অন্য কোনো মলম, জেলি, মধু—কোনো কিছুই ব্যবহার করা যাবে না। কপালে, চোখের কাছে সিলভার সালফাডায়াজিন মলম প্রয়োগ করার ক্ষেত্রেও সতর্ক থাকতে হবে; খুবই হালকাভাবে মলমটি লাগাতে হবে যাতে তা চোখে না চলে যায়।

সতর্ক থাকুন
রান্নাঘরে ফোনে কথা বলবেন না। এতে অমনোযোগী ও অসাবধান হয়ে পড়তে পারেন।

কাপড়ে যেন আগুন না লাগে, সে ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। ঢিলেঢালা পোশাক, শাল, চাদর, ওড়না, শাড়ির আঁচল চট করে সরে গিয়ে আগুন লেগে যেতে পারে। তাই আঁটসাঁট হয়ে রান্নাঘরে যাবেন। দরকার হলে চাদর বা ওড়না খুলে রাখবেন।

কাজ শেষে অবশ্যই গ্যাসের চুলা নিভিয়ে দেবেন। চুলার আগুনে কাপড় শুকাতে দেবেন না।

সিলিন্ডার ও গ্যাসের সংযোগ ঠিকঠাক রাখুন। মাঝেমধ্যে ফুটো বা লিক আছে কি না, মিস্ত্রি ডেকে পরীক্ষা করুন।

সকালে দেশলাই জ্বালানোর আগে রান্নাঘরের জানালা খুলে দিন আগে। বদ্ধ জমা গ্যাস যেন বেরিয়ে যায়।

গরম পানি, পানীয়, ডাল, তরকারি প্রভৃতি রাখুন সাবধানে, শিশুর নাগালের বাইরে। পানি গরম করার পাত্রে গরম পানি নিয়ে রান্নাঘর থেকে অন্য স্থানে যাবেন না। যে পাত্রে পানি গরম করা হবে, সেটির অর্ধেক বা দুই-তৃতীয়াংশ পরিমাণ পানি নিয়ে ফুটিয়ে নিন। চুলা নিভিয়ে দিয়ে কিছুটা স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি যোগ করুন সেই পাত্রে। এবার চুলা থেকে পাত্রটি নামিয়ে নিয়ে বালতিতে এই পানি ঢেলে অন্যত্র নিতে পারবেন।

করোনাকালে বেশির ভাগ বাড়িতেই স্পিরিট, স্যানিটাইজার ইত্যাদি জীবাণুনাশকভর্তি বোতল বা কনটেইনার আছে। এগুলো রান্নাঘর ও চুলা থেকে দূরে রাখবেন। কোনো অবস্থাতেই এসব জিনিসের পাশে সিগারেট বা দেশলাই ধরাবেন না।

মাঝেমধ্যেই ঘরের বৈদ্যুতিক সুইচবোর্ডগুলো পরীক্ষা করিয়ে নিন। কোনো অবস্থাতেই নষ্ট বা সমস্যাযুক্ত সুইচ ব্যবহার করা যাবে না।

মুঠোফোন চার্জে দিয়ে কথা বলবেন না।

অনুলিখন: ডা. রাফিয়া আলম

Ref; https://www.prothomalo.com/feature/pro-health/%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A7%9C%E0%A7%87-%E0%A6%97%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A5%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%87-%E0%A6%AF%E0%A7%87-%E0%A6%9A%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A7%8E%E0%A6%B8%E0%A6%BE

38
কথায় বলে ‘আদা সকল রোগ নিরাময়ে দাদা’। যার অর্থ আমাদের শরীরে সব রোগ নিরাময়ের জন্য আদা যথেষ্ট ভূমিকা রাখতে সক্ষম। আদায় রয়েছে পটাশিয়াম, আয়রণ, ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালশিয়াম, ফসফরাস, সোডিয়াম, জিংক, ম্যাঙ্গানিজ, ভিটামিন এ, বি৬, ই ও সি এবং অ্যান্টি–ব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট ও অ্যান্টি–ইনফ্লামেটরি এজেন্ট বিদ্যমান। যার কারণে সব বয়সী মানুষ আদা খেতে পারেন, বিশেষ করে শিশুদের জন্য আদা–মধু–জল সুস্থ দেহ ও সতেজ মনের জন্য খুবই কার্যকর।

জেনে নেওয়া যেতে পারে আমাদের কোন কোন সমস্যা নিবিড়ভাবে কাজ করে আদা।

আমাশয়, পেটফাঁপা, পেটব্যথা
যাঁরা এসব সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের জন্য খাওয়ার পর এক কাপ গরম পানিতে এক চা–চামচ আদার রস মিশিয়ে খেলে আমাশয়, পেটফাঁপা, পেটব্যথা দূর হবে। যাঁরা এ সমস্যায় দীর্ঘদিন ধরে ভুগছেন, তাঁরা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু, একত্রে এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে দিনে এবং রাতে নিয়মিত খেলে সুফল পাবেন। 

হাঁপানি ও ফুসফুসে সংক্রমণ
ফুসফুসের ধমনিতে কোনো সংক্রমণ থাকলে এবং শ্বাস নিতে কষ্ট হলে অথবা হাঁপানি থাকলে প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস, মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে এবং ঠান্ডাজাতীয় খাবার এড়িয়ে চললে ১৫ দিনের মধ্যে এর সুফল পাবেন।

আদা ও লেবুর রসের সঙ্গে মধু দারুণ কার্যকর
শরীরের ভেতরের বায়ু ও কোষ্ঠবদ্ধতা, পেটে গ্যাস, কোনো খাবার খেলেই গ্যাস বের হতে থাকে, সেই সঙ্গে কোষ্টকাঠিন্য, প্রতিদিন মলত্যাগ হয় না, মলে দুর্গন্ধ এবং শক্ত, তাঁদের জন্য প্রথম সাত দিন এক চা–চামচ আদার রস এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে ছয় থেকে সাতবার খেতে হবে। এতে সমস্যার কিছুটা সমাধান হবে; তারপর প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেতে হবে। তাহলে গ্যাসের স্থায়ী সমাধান মিলবে। মনে রাখতে হবে, গ্যাসের সমস্যার প্রধান কারণ শরীর বিরুদ্ধ খাবার; আসলে যে খাবার আপনার শরীরের জন্য ক্ষতিকর তা এড়িয়ে গেলে কোনো ওষুধেরই প্রয়োজন হয় না।

অস্টিওআর্থ্রাইটিস, রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, হাড়ের জয়েন্টের ব্যথা
মূলত এ রোগগুলোর কোনো স্থায়ী সমাধান নেই। শরীরের ওজন ঠিক রেখে, নির্দিষ্ট ব্যায়াম ও দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস, মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে এর তীব্রতা কমে। যেহেতু এ রোগ হওয়ার অন্যতম কারণ শরীরে পানি ও ক্যালসিয়াম ঘাটতি, সেহেতু পানি খাওয়ার প্রবণতা বাড়াতে হবে।

হৃদ্‌রোগ
হৃদ্‌রোগের বিভিন্ন উপায় আছে প্রাকৃতিক উপায়ে নিরাময়ের জন্য। যাঁদের হৃদ্‌রোগ আছে কিন্তু উচ্চরক্ত চাপ নেই, তাঁরা দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খাবেন। সেই সঙ্গে গ্যাসজনিত সমস্যা থাকলে সাত দিন এক চা–চামচ আদার রস গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে ছয় থেকে সাতবার খাবেন। ধৈর্যসহ নিয়মিত এ নিয়মে চললে হৃদ্‌রোগের সমস্যা দূর হতে থাকবে।

জ্বর জ্বর, বমি বমি ভাব
এক চা–চামচ আদার রস গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে ছয় থেকে সাতবার খেলে জ্বর জ্বর ভাব ও বমি বমি ভাব কেটে যাবে।

মাইগ্রেন, সাইনাস, গলা ও মাথাব্যথায়
তাৎক্ষণিক সমাধানের জন্য সামান্য লবণ দিয়ে কাঁচা আদা চিবিয়ে খেতে হবে। কিন্তু রোগ সারাতে হলে প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু গরম এক কাপ পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে মাইগ্রেনের সমস্যা দূর হবে।
আহারে রুচি আসে, ক্ষুধা বাড়ায়, হজমে সহায়তা করে
সামান্য লবণ দিয়ে কাঁচা আদা চিবিয়ে খেলে আহারে রুচি আসে।

কাশি কমায়, কফ দূর করে
প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে কাশি কমে, কফ দূর হয়।

আদার গুঁড়াও কার্যকর
পাকস্থলী ও লিভারের শক্তিবর্ধক
সমপরিমাণে আদার গুঁড়া, মধু ও আমলকীর গুঁড়া একসঙ্গে মিশিয়ে রেখে প্রতিদিন তিনবার চা হিসেবে খাওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে পাকস্থলী ও লিভারের শক্তি বৃদ্ধি পাবে।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে

প্রতিদিন দুবেলা এক চা–চামচ করে আদার রস, লেবুর রস ও মধু এক কাপ গরম পানিতে মিশিয়ে চায়ের মতো করে খেলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কাজে আসবে। ডায়েবেটিস রোগীদের মধু বাদ দিয়ে খেতে হবে।

আমাদের প্রাচীন চিকিৎসাব্যবস্থায় আদা একটি অপরিহার্য উপাদান। এর গুণাগুণের কারণে আমাদের খাদ্যে এর প্রচলন চলে এসেছে। আমরা প্রতিদিন রান্নায় যে আদা খেয়ে থাকি, তাতে কিছু উপকার হলেও ঔষধি উপকার পেতে হলে নিয়ম করে আদা খেতে হবে আর যেখানে আদা ছেঁচে বা পিষে খাওয়ার কথা বলা হয়েছে তা শুধু যখন খাবেন, তখনই ছেঁচে বা পিষে খেতে হবে।

আদা একবারে পিষে ফ্রিজে রেখে দেয়া উচিৎ নয়
আদা একবারে পিষে ফ্রিজে রেখে দেয়া উচিৎ নয়ছবি: উইকিপিডিয়া
অনেকেই এক মাসের প্রয়োজনীয় আদা একবারে পিষে ফ্রিজে রেখে দেন। এ আদা দিয়ে কিন্তু ঔষধি উপকার পাওয়া যাবে না।
যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল সেন্টার ফর কমপ্লিমেন্টারি অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটিভ হেলথের তথ্য অনুযায়ী, আদার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে হজমে সমস্যা ও পেটফোলা ভাব দেখা দিতে পারে অতিমাত্রায় আদা খাওয়া হলে। প্রতিটি উপাদানেরই নিজস্ব ডোজ থাকে, তেমনি আদার বেলায় ১৫ গ্রাম রস সারা দিনে খাওয়া উচিত। যাঁরা ডায়াবেটিসে ভুগছেন, তাঁরা মধু কম খাবেন।

লেখক: খাদ্য, পথ্য ও আকুপ্রেশার বিশেষজ্ঞ

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%86%E0%A6%A6%E0%A6%BE-%E0%A6%B8%E0%A6%95%E0%A6%B2-%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%97-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A6%BE

39
আমাদের শরীরে পানি, অম্ল ও ক্ষারের ভারসাম্য রক্ষা করে কিডনি। পাশাপাশি রক্ত পরিশোধন ও শরীর থেকে দূষিত পদার্থ ছেঁকে বের করে দেয় এই অঙ্গ। গুরুত্বপূর্ণ এই অঙ্গের কোনো সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলতে হবে। সুস্থ থাকতে এর পাশাপাশি সঠিক ডায়েট ফলো করতে হয়। তবে কিডনি রোগীদের খাবার নিয়ে অনেক ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে মানুষের মনে। অনেক কিডনি রোগী অনেক ধরনের খাবার বাদ দেন ও অপুষ্টির শিকার হন। এমন পাঁচটি ভুল ধারণা হলো—

১. বেশি পানি পানে কিডনি ভালো হয়ে যায়
বেশি পানি পান করলে কিডনির সমস্যা ঠিক হয়ে যায়, এটা আসলে ভুল ধারণা। আবহাওয়া ও কাজের ধরনের ওপর নির্ভর করে কতটুকু পানি পান করতে হবে। পানির পিপাসাই পানি পানের পরিমাণ নির্দেশ করে। তবে ডায়রিয়া বা বমির পর পানিশূন্যতা পূরণ না করলে কিডনি বিকল হতে পারে। আবার কিডনি বিকল হলে বরং পানি মেপে পান করতে বলা হয়। কিডনিতে পাথর হলে বা সংক্রমণ হলে অনেক সময় বেশি পানি ও তরল খাবার খেতে বলা হয়।

২. ফলমূল খাওয়া নিষেধ
দীর্ঘমেয়াদি কিডনির সমস্যা হলে ফলমূল খাওয়া বন্ধ করে দেন অনেকেই। আসলে পটাশিয়াম বেড়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকলে উচ্চ পটাশিয়ামযুক্ত ফলমূল যেমন কলা, ডাব, টমেটো এড়িয়ে চলতে বলা হয়। তবে পেঁপে, আনারস, পেয়ারা, আপেল, নাশপাতি এসব কিডনিবান্ধব ফল। এগুলো পরিমাণমতো খাওয়া যায়। ফলই খাওয়া যাবে না, এটা ঠিক নয়।

৩. প্রোটিন খেতে পারবেন না
ক্রিয়েটিনিন বেড়ে গেলে বা প্রস্রাবের সঙ্গে প্রোটিন গেলে মাছ–মাংসজাতীয় সব আমিষ বন্ধ করে দেন অনেকেই। এটা একেবারেই ভুল। দীর্ঘমেয়াদি কিডনি সমস্যার তৃতীয় পর্যায় পর্যন্ত প্রতি কেজি ওজনের জন্য ০.৮ গ্রাম প্রোটিন গ্রহণ করা যায়। যেমন কারও ওজন ৬০ কেজি হলে দৈনিক ৪৮ গ্রাম আমিষ খাবেন। সেটা অবশ্য প্রথম শ্রেণির প্রোটিন যেমন মাছ, মাংস, ডিম হতে হবে। একেবারে কম প্রোটিন খেলে অপুষ্টি দেখা দেবে। তবে সমস্যা চতুর্থ পর্যায়ে পৌঁছে গেলে সর্বোচ্চ ৬০ গ্রামের বেশি প্রোটিন গ্রহণ করা যাবে না।

৪. দুগ্ধজাতীয় খাবার নিষেধ
এটাও ভুল ধারণা। শুধু কিডনি বিকল হলে, রক্তে ফসফরাস বা ফসফেটের পরিমাণ যাতে বেড়ে না যায়, সে জন্য অতিরিক্ত দুগ্ধজাতীয় খাবার খাওয়া যায় না। এ ছাড়া প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণে দুগ্ধজাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হয়। না হলে শরীরে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডির অভাব দেখা দেয়।

৫. পটাশিয়ামযুক্ত খাবার নিষেধ
সব কিডনি রোগীরই যে পটাশিয়ামযুক্ত খাবার বর্জন করতে হবে, এটা ঠিক নয়। দীর্ঘমেয়াদি কিডনি রোগীদের মধ্যে যাঁদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি এবং যাঁদের সমস্যা চতুর্থ পর্যায়ে পৌঁছে গেছে, কেবল তাঁদেরই উচ্চ পটাশিয়ামযুক্ত খাবার বর্জন করতে হবে। এ ধরনের রোগীর কম পটাশিয়ামযুক্ত খাবার খেতে হবে।


পুষ্টি বিশেষজ্ঞ, ইবনে সিনা কনসালটেশন সেন্টার, বাড্ডা

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%A1%E0%A6%A8%E0%A6%BF-%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%97%E0%A7%80%E0%A6%B0-%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A7%AB-%E0%A6%AD%E0%A7%81%E0%A6%B2-%E0%A6%A7%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A3%E0%A6%BE

40
৮ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মৃগী রোগ দিবস। এ রোগ সম্পর্কে গণসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রথম আলো আয়োজন করেছে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘এসকেএফ নিবেদিত মৃগীরোগ সচেতনতা সপ্তাহ’। অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বের বিষয় ছিল, ‘মৃগীরোগ: কী এবং কেন?’
অতিথি ছিলেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতালের ক্লিনিক্যাল নিউরোলজি বিভাগের অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী। সঞ্চালনায় ছিলেন চিকিৎসক লুবাইনা হক। অনুষ্ঠানটি ৫ ফেব্রুয়ারি প্রথম আলো ফেসবুক পেজ থেকে সম্প্রচার করা হয়।

আদিকাল থেকেই মৃগীরোগ নিয়ে আমাদের সমাজে অনেক বিভ্রান্তি ও ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। এ নিয়ে শুরুতেই চিকিৎসক অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী বলেন, ‘মৃগীরোগ মস্তিষ্কের স্নায়ুতন্ত্রের একটি জটিল রোগ। আমাদের মস্তিষ্ক থেকে যখন কোনো সিগন্যাল আসে তখনই আমরা কাজ করতে পারি। যেমন, হাত-পা নাড়ানো ইত্যাদি। কিন্তু যখন অতিরিক্ত বা অস্বাভাবিক সিগন্যাল আসে, তখন এই রোগের সৃষ্টি হয়।’ এ রোগটি প্রকোপ শুরু হলে কাঁপুনি, খিঁচুনি হয়, হাত পা শক্ত হয়ে যায়, দাঁতে দাঁত লেগে যায়, ফলে জিহ্বা কেটে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে, কখনো এ অবস্থায় প্রস্রাব–পায়খানাও হয়ে যেতে পারে।

মৃগীরোগের ইতিহাস বেশ পুরোনো। শোনা যায়, প্লেটো, আইনস্টাইন, নেপোলিয়ন বোনাপার্ট, আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট প্রমুখ বিখ্যাত মানুষদের এ রোগটি ছিল। অনেক আগে মানুষের মৃগীরোগ নিয়ে অনেক কুসংস্কার ছিল। মানুষ ভাবত, রোগটা ঈশ্বরের অভিশাপ। তাই রোগীদের সমাজ থেকে আলাদা করে দেওয়া হতো তখন। এর চিকিৎসা পদ্ধতিও ছিল বীভৎস। হাতুড়ি দিয়ে মাথায় বাড়ি দিয়ে বা মাথা ফুটো করে চিকিৎসা করা হতো। এমনটাই জানা গেল চিকিৎসক অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরীর আলোচনা থেকে।

মৃগীরোগে বিভ্রান্তি নয়, সচেতন হতে হবে
তিনি জানান, ‘এ রোগ আমাদের মস্তিষ্কে তেমন কোনো ক্ষতি করে না। এ রোগ নিয়ে সমাজে স্বাভাবিক জীবনযাপন করা সম্ভব। মৃগীরোগ হলে কেউ স্বাভাবিক কোনো কাজ করতে পারবে না, সমাজে থাকতে পারবে না, এটি কোনো চিকিৎসক মনে করে না। ভালোভাবে চিকিৎসা করলে, ওষুধ আর নিয়মের ভেতর থাকলে এ রোগ নিয়েও সব কাজ চালিয়ে যাওয়া যাবে।’

গ্রামাঞ্চলে বা কখনো কখনো শহরে দেখা যায়, খিঁচুনি শুরু হলে রোগীকে জুতা, মোজার গন্ধ শুঁকতে দেওয়া হয়, দাঁত লেগে যেন জিহ্বা কেটে না যায়, এ জন্য মুখের ভেতর চামচ বা শক্ত কিছু দিয়ে দেওয়া হয়। এগুলো করা যাবে না বলে জানান এম এস জহিরুল হক চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘এমন পরিস্থিতিতে রোগীকে কাত করে দিতে হবে বা বিছানা অথবা মেঝেতে সোজা করে শুইয়ে দিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে খিঁচুনির সময় মাথায় যেন আঘাত না লাগে, আশপাশে যেন ধারালো কোনো জিনিস না থাকে। এই খিঁচুনি এক বা দুই মিনিট পর ঠিক হয়ে যায়।’ এ ছাড়া আঁটসাঁট পোশাক পরা থাকলে ঢিলা করে দিতে হবে। মুখে লালা এলে পরিষ্কার করে দিতে হবে। রোগী যেন শ্বাসপ্রশ্বাস ঠিকমতো নিতে পারে, সেদিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। এরপর যদি খিঁচুনি দীর্ঘ সময় বা বারবার হতে থাকে তখন হাসপাতালে নিতে হবে।

অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী, ক্লিনিক্যাল নিউরোলজি বিভাগ, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস হাসপাতাল 
মৃগীরোগ কেন হয়, বেশির ভাগ সময় এর কোনো সঠিক কারণ জানা যায় না। তবে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ ক্ষেত্রে অ্যান্টি–এপিলিপটিক ড্রাগের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ আনা যায়। আর ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ মানুষের মৃগীরোগ তিন–চার বছরের ভেতরে ভালো হয়ে যায়। এ ছাড়া ৩০ শতাংশ মানুষের ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় ধরে ওষুধ খেতে হয় এবং ৩০ শতাংশ মানুষের ক্ষেত্রে দেখা যায় ওষুধেও কোনো কাজ হয় না।

অনেক শিশুর সেরেব্রাল পলসি রোগ হয়ে থাকে। তাদের মধ্যে খিঁচুনি হতে দেখা যায়। অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী বলেন, ‘এ ধরনের মৃগীরোগ বা খিঁচুনি নিয়ন্ত্রণ করা খুব কঠিন। ওষুধ দিলে সুস্থ হয় না, শুধু খিঁচুনি হওয়াটা কমানো যায়।’

মৃগীরোগীদের অনেক ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করে চলার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা। যেমন, এসব রোগীর উচ্চ শব্দে গান শুনলে, অ্যাকশন মুভি বা স্পর্শকাতর কোনো দৃশ্য দেখলে কিংবা হঠাৎ কোনো দুঃসংবাদ শুনলে সিজার অ্যাটাক বা খিঁচুনি হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। তাই এ ধরনের কর্মকাণ্ড যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে হবে। আবার অ্যান্টি–এপিলেপটিক ড্রাগ সেবনে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। এ ব্যাপারে মৃগীরোগীদের বিশেষভাবে সতর্ক থাকতে হয়।

অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী বলেন, ‘মৃগীরোগীদের সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করতে হবে। রাত জেগে কাজ করা যাবে না, ঘুমানোর সময় বাড়াতে হবে। স্ট্রেসফুল বা চাপযুক্ত পরিস্থিতি এড়িয়ে চলতে হবে। এ ছাড়া আগুনের কাছে যাওয়া যাবে না, একা একা কোথাও যাওয়া যাবে না। আর খিঁচুনি সেরে গেলে ভালো নিউরোলজিস্টের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন বন্ধ করতে হবে।’

অনেকেই মনে করেন, খাবারের সঙ্গে মৃগীরোগের সম্পর্ক থাকে। এ নিয়ে অধ্যাপক এম এস জহিরুল হক চৌধুরী বলেন, ‘এ রোগের সঙ্গে খাবারের কোনো সরাসরি সম্পর্ক নেই। আমরা সচরাচর যে খাবার খাই, মৃগীরোগীও সেই একই খাবার খেতে পারবেন।’

Video Link: https://www.facebook.com/watch/?v=1146705472428364
Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%AE%E0%A7%83%E0%A6%97%E0%A7%80%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%97%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%A8%E0%A7%9F-%E0%A6%B8%E0%A6%9A%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A6%A8-%E0%A6%B9%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A6%AC%E0%A7%87

41
Protect your Health/ your Doctor / সতেজ সকাল পেতে
« on: February 04, 2021, 03:15:33 PM »
অনেকেই বলেন, ‘সকালই বলে দেয় দিনটি কেমন যাবে।’ তাই সুন্দর একটি সকালের শুরু, দারুণ একটি দিন উপহার দিতে পারে। নিয়মিত সতেজভাবে সকাল শুরুর অভ্যাস করতে পারলে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকে। জেনে নেওয়া যাক কীভাবে শুরু করবেন দারুণ একটি সকাল। অন্তর্জাল ঘেঁটে ও পুষ্টিবিদ আখতারুন্নাহার আলোর সঙ্গে কথা বলে এখানে থাকছে তেমন কিছু কার্যকর পরামর্শ।

ভালো একটি সকাল শুরুর প্রথম শর্ত হলো তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠা। এর মানে ভোর ৫টায় আপনাকে উঠতে হবে এমন না। তবে সর্বোচ্চ ৭টা–সাড়ে ৭টার পরে আর ঘুমানো ঠিক নয়।

ঘুম থেকে ওঠার পর মুখ ধুয়ে এক গ্লাস পানি খেয়ে নিন। এতে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হবে। পাশাপাশি শরীরও সতেজ থাকবে।

৮-৯টার মধ্যেই সকালের নাশতা সেরে নেওয়া উচিত। যদি কোনো দিন অফিসে যাওয়ার তাড়াহুড়ার কারণে সকালের নাশতা খেতে না পারেন, তাহলে টিফিন বক্সে নাশতা নিন। মনে রাখতে হবে, সকালে না খেয়ে থাকা একদমই ঠিক নয়। সকালে পেট খালি থাকলে গ্যাস্ট্রিক, আলসারসহ নানাবিধ শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। তা ছাড়া খালি পেটে থাকলে কাজে মন বসে না। সারা দিনই একধরনের ঝিমুনি ভাব থাকে শরীরে।

সকালের নাশতায় কোনো ভাজা-পোড়া খাবার রাখা যাবে না। সকালের খাদ্যতালিকায় রুটি, পাউরুটি-মাখন, ডিম, চিড়া ইত্যাদি খাবার রাখতে পারেন। এ ছাড়া দুধের সঙ্গে মিলিয়ে কর্নফ্লেকস, ওটস ইত্যাদিও খাওয়া যেতে পারে। খেতে পারেন ফলমূলও।

মন ভালো রাখুন সকালে
সকালে হালকা ব্যায়াম থেকে শুরু করে হাঁটা কিংবা দৌড়ানো বেশ ভালো অভ্যাস। হাঁটার জন্য আশপাশের পার্কে যেতে পারেন। তবে বাইরে যাওয়ার সুযোগ না থাকলে বাড়ির ছাদ বা বসার ঘর হতে পারে ব্যায়াম কিংবা হাঁটার জন্য দারুণ জায়গা। চাইলে ট্রেডমিল বা বৈদ্যুতিক হাঁটার যন্ত্র কিনে ঘরের মধ্যেও হাঁটার অভ্যাস করতে পারেন।

ব্যায়াম করার সময় হেডফোন কানে লাগিয়ে শুনতে পারেন পছন্দের গানগুলো। এতে শরীরচর্চার পাশাপাশি মানসিক প্রশান্তি আসবে।

যাঁদের ব্যায়াম করার অভ্যাস আছে, তাঁরা ব্যায়াম শেষে নাশতা করবেন। তবে ব্যায়াম কিংবা হাঁটতে যাওয়ার আগে হালকা কোনো খাবার, যেমন বিস্কুট, মুড়ি কিংবা চিড়া খেয়ে নিতে পারেন।

ঝরঝরে একটি সকাল শুরুর জন্য নাশতার পর এক কাপ চা পান করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। আপনার পছন্দ অনুযায়ী দুধ চা, রং চা কিংবা হালের গ্রিন টি থেকে যেকোনো চা বেছে নিতে পারেন। তবে যাঁদের রক্তে হিমোগ্লোবিনের ঘাটতি রয়েছে, তাঁদের নাশতার ঘণ্টাখানেক পর চা খাওয়া উচিত।

সর্বোপরি সকাল হলো সারা দিনের প্রস্তুতি। তাই সময়মতো সকালে উঠে পুরো দিনের কর্মতালিকাটি সাজিয়ে নিলে কার্যকর একটি দিন কাটানো সম্ভব।

Ref: https://www.prothomalo.com/feature/adhuna/%E0%A6%B8%E0%A6%A4%E0%A7%87%E0%A6%9C-%E0%A6%B8%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A7%87

42
যেকোনো সময় যেকারও ক্ষেত্রে প্রাণঘাতী হয়ে উঠতে পারে করোনা। এটি প্রতিরোধে সচেতন হওয়াই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কার্যকর উপায়। অবশ্য টিকা কিছুটা হলেও হাতের নাগালে; কিন্তু পুরোপুরি সহজলভ্য নয়, তাই ঘন ঘন সাবান ও পানি দিয়ে ভালো করে হাত ধুতে হবে; অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকতে হবে; ইতিমধ্যেই আক্রান্ত হয়েছেন, এমন ব্যক্তিদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে; হাঁচি-কাশির শিষ্টাচার মেনে চলতে হবে।

ডা. নাদিয়া নিতুলের সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন জাতীয় হৃদ্‌রোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. শফিকুর রহমান পাটওয়ারী

করোনায় রোগীদের নানা ধরনের স্বাস্থ্য জটিলতা ও এর প্রতিকার নিয়ে প্রথম আলো আয়োজন করে এসকেএফ নিবেদিত স্বাস্থ্যবিষয়ক বিশেষ অনুষ্ঠান ‘হৃদয়ের সুরক্ষা’। অনুষ্ঠানটির ত্রয়োদশ পর্বে ডা. নাদিয়া নিতুলের সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন জাতীয় হৃদ্‌রোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. শফিকুর রহমান পাটওয়ারী।

অনুষ্ঠানের শুরুতে মো. শফিকুর রহমান পাটওয়ারী আলোচনা করেন রক্ত জমাট বাঁধা কী এবং এর কারণ নিয়ে। তিনি বলেন, রক্ত আমাদের শরীরে অক্সিজেন এবং পুষ্টি সরবরাহ করে। এগুলো ছাড়া শরীরের কোনো কোষই বেঁচে থাকবে না। এই কোষ দিয়েই আমাদের দেহের অর্গানগুলি গঠিত। যেমন এই পুষ্টি সরবরাহ করার জন্য প্রবহমান রক্তের প্রয়োজন। এই প্রবাহের জন্য শরীরের ভেতরে কিছু সিস্টেম কাজ করে, যাকে ডাক্তারি পরিভাষায় বলা হয় অ্যান্টিকোয়াগুলেশন সিস্টেম। আর রক্তের প্রবাহ ঠিক রাখতে রক্তকে তরল রাখা প্রয়োজন, তাই এখানে কিছু প্রোটিন কাজ করে। আবার রক্ত পুরোপুরি জমাট না বাঁধলেও কিছু বিপদ থেকে যায়। যেমন যদি শরীরের কোনো অংশ কেটে যায়, তবে রক্ত ঝরতে থাকে। এটি বন্ধের জন্য রক্ত জমাট বাঁধা জরুরি।

এ জন্য রক্ত তরল রাখার বিপরীতে আরও একটি সিস্টেম কাজ করে, তা হচ্ছে ক্লটিং সিস্টেম। কোনো জায়গায় কেটে গেলে এই সিস্টেম রক্ত জমাট বাঁধতে সহায়তা করে রক্ত ঝরানো বন্ধ করে দেয়। এবং এই সিস্টেমগুলো সঠিকভাবে কাজ না করলেই শরীরে নানা জটিলতা তৈরি হয়। এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী বলা যায় পৃথিবীতে যে পরিমাণ মানুষ মারা যাচ্ছে, এর প্রতি চারজনের একজন রক্ত জমাট বাঁধার কারণে মৃত্যুবরণ করে। এর অনেক ধরন রয়েছে। যেমন: হার্টে রক্ত জমাট বাঁধার কারণে হার্ট অ্যাটাক হয়, মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বাঁধার কারণে স্ট্রোক হয়, এ ছাড়া লাঙে রক্ত জমাট বাঁধার কারণে পালমারি এম্বোলিজম হয়ে মানুষের মৃত্যু ঘটে, আবার পায়ের ভেইনে রক্ত জমাট বাঁধতে পারে।

মানুষের শরীরে দুই ধরনের শিরা আছে। একটি খালি চোখে দেখা যায়, যা চামড়ার ঠিক নিচে থাকে। আরেকটি দেহের মাংসপেশির মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়। এসব শিরায় বিশেষ করে পায়ের শিরায় রক্ত জমাট বেঁধে ডিপ ভেইন থ্রাম্বোসিস (ডিভিটি) সৃষ্টি করে। এর ফলে হঠাৎ পায়ে ব্যথাসহ পা মোটা হতে থাকে। তাৎক্ষণিক চিকিৎসা না করালে পা ফোলা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে, এমনকি পায়ে ঘাও হতে পারে। অনেক সময় এ রক্ত জমাট ফুসফুসে ঢুকে প্রাণহানি পর্যন্ত ঘটাতে পারে। যেসব রোগ বা অসুস্থতা আমাদের শরীরে রক্ত জমাট বাঁধার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে, সেসব রোগের জন্যও ডিপ ভেইন থ্রম্বোসিস দেখা দিতে পারে। কোনো দুর্ঘটনা বা অপারেশনের পর শারীরিক অসুস্থতা বা চিকিৎসার জন্য আমাদের হাসপাতালে বা নিজ বাসস্থানে চলাফেরার পরিমাণ

অনেকাংশে কমে যায়। এ অবস্থায়ও ডিপ ভেইন থ্রম্বোসিসের সৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া অতিরিক্ত ওজন, গর্ভাবস্থা, দীর্ঘ সময় ভ্রমণ, শরীরে রক্ত জমাট বাঁধতে বাধা দেওয়া বিভিন্ন উপাদানের ঘাটতি, বংশগত ঝুঁকি ইত্যাদি কারণেও এই রোগ হতে পারে।
এরপর ডা. মো. শফিকুর রহমান পাটওয়ারী আলোচনা করেন করোনায় আক্রান্ত রোগীর ক্ষেত্রে এই রক্ত জমাট বাঁধা কীভাবে কাজ করে এবং কতটা ক্ষতিকর। তিনি বলেন, শুরুতে করোনার গতি–প্রকৃতি সম্পর্কে তেমন কোনো ধারণা না থাকলেও এত দিনের গবেষণা ও পর্যবেক্ষণ থেকে কিছু কিছু বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা তৈরি হয়েছে। যেমন আগে আমরা জানতাম না করোনা রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। এ কারণে অনেক রোগীর জটিল সমস্যা দেখা যায়, এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হয়েছে।
মহামারির শুরুতে ধারণা করা হতো ফুসফুসে সংক্রমণের কারণেই শুধু মৃত্যু বেশি হচ্ছে। পরে নানা ধরনের পর্যবেক্ষণ ও করোনা রোগীদের পোস্টমর্টেম রিপোর্ট দেখে বোঝা গেল করোনা মানুষের শরীরের বিভিন্ন জায়গার রক্তনালি যেমন পায়ে ও ফুসফুসে রক্ত জমাট বেঁধেছে। করোনাভাইরাস রক্তনালিগুলোর পথে ক্ষত তৈরি করে, যার ফলে রক্ত জমাট বাঁধতে পারে। একে এখন বলা হচ্ছে এটি কোভিড অ্যাসোসিয়েটেড কোয়াগুলোপ্যাথি। এটিকে আলাদা একটি রোগ হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে এখন।

এ ছাড়া অনেক সময় এর সঙ্গে সম্পর্কিত থাকে পালমোনারি এম্বলিজম নামের আরও একটি রোগ। পালমোনারি এম্বলিজম এমন একটি অবস্থা, যা রক্ত জমাট বাঁধার কারণে ফুসফুসের মধ্যে রক্তনালির বাধার সৃষ্টি করে, যখন রক্তনালির মাধ্যমে জমাট বাঁধা রক্ত যাতায়াত করে, তখন তা ফুসফুসে পৌঁছে যায় এবং সেখানে আশ্রয় নেয়, যার ফলে এটি হয়। যদি এই জমাট বাঁধা রক্ত বড় এবং সংখ্যায় বেশি হয়, তাহলে তা রোগীর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়। এটি ফুসফুসের ক্ষতি করে এবং রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কমিয়ে দেয়। ফলে, শরীরের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেনের সরবরাহ কমে যায়। এতে শরীরের অন্যান্য অঙ্গেরও ক্ষতি হতে পারে। এ জন্যই করোনা থেকে সবারই সতর্ক থাকতে হবে। কারণ, কখন কার ক্ষেত্রে এটি জটিল আকার ধারণ করবে বলা মুশকিল। তবে যাঁদের উচ্চ রক্তচাপ, ডায়বেটিস; যাঁদের রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি রয়েছে; বৃদ্ধ, ক্যানসারে আক্রান্ত রোগী; যাঁদের অতিরিক্ত ওজন, তাঁদেরই মৃত্যুঝুঁকি অনেক বেশি।

Video Link: https://www.facebook.com/watch/?v=405707837187973
Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%97-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A7%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%AC%E0%A7%83%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%A7%E0%A6%BF-%E0%A6%9C%E0%A6%B0%E0%A7%81%E0%A6%B0%E0%A6%BF

43
শীতের সময়ে ধুলাবালি বেড়ে গিয়ে আমাদের যাঁদের অ্যালার্জি বা অ্যাজমার সমস্যা আছে, তাঁদের কষ্ট বেড়ে যায়। অনেকেরই সারা বছর ধরেই হাঁচি-কাশির সমস্যা থেকে যায়। যাঁদের এ সমস্যা, তাঁদের শীতের সময় একটু বাড়তি যত্ন নেওয়ার প্রয়োজন পড়ে।

লেখা
শারমীন বানু আনাম, এমডি, যুক্তরাষ্ট্র

অ্যালার্জি
ফুলের পলেন অ্যালার্জি বাড়াতে পারে
হাঁচি, কাশি, নাকে পানি, চোখে পানি, চুলকানো সমস্যা এদের বেশ কাহিল করে দেয়। ধুলাবালি, ডাস্ট মাইট, পলেন, ঠান্ডা বাতাস বা ধোঁয়া সমস্যা বাড়িয়ে দেয়। অনেকেই বোঝেন না, যাঁদের ইমোশনাল প্রবলেম থাকে, তাদেরও এটি বেশ ঝামেলা করে। শরীরে চুলকানি বা একজিমাও হতে পারে।

শীতের দিনে সোয়েটার বা উলের পোশাক, শুষ্ক আবহাওয়া, গরম পানির গোসল—এসবই সমস্যাটিকে বাড়িয়ে তোলে।

উলের পোশাকও সমস্যা বাড়ায়
গ্রামের দিকে ফসলের পলেন, ফুলের পলেন, গাছের পলেন, ঘাসের পলেন অবশ্যই অ্যালার্জি বাড়িয়ে তোলে।

খুব সহজে আরাম পাওয়ার জন্য আরামদায়ক পরিষ্কার সুতির কাপড় পরা, তার ওপর সোয়েটার সমাধান হতে পারে। অবশ্যই গোসল করবেন অল্প গরম পানিতে, পাঁচ মিনিটের মধ্যে গোসল সারবেন। তারপর ভেজলিন বা এই জাতীয় লোশন মেখে নিলে আরাম পাবেন। আর ওষুধ হিসেবে হিস্টাসিন নয়। হিস্টাসিন বেশি সময় কাজ করে না, সঙ্গে ঘুম ঘুম ভাব নিয়ে আসে। তবে ২৪ ঘণ্টা কাজ করে এমন অ্যান্টিহিসটামিন খেতে হবে। স্টেরয়েড জাতীয় নাকের স্প্রেও এ সময় প্রতিদিন ব্যবহার করতে হবে।

আরামদায়ক পরিষ্কার সুতির কাপড় পরা বাঞ্ছনীয়
যাঁদের যেসব খাবারে অ্যালার্জি আছে, সেসব খাবার বর্জন করতে হবে। গণহারে সব বাদ দেওয়ার প্রয়োজন নেই। শুধু যে খাবারে অ্যালার্জি, তা বাদ দিলেই হবে। ঘরবাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। বিশেষ করে ধুলা। ঘরবাড়ি পরিষ্কার করার সময় অবশ্যই মাস্ক পরে নেবেন। পুরোনো কাপড়-চোপড় ঘাঁটাঘাঁটি করার সময়ও সতর্ক থাকবেন, কাপড়ের লিন্টে অনেকের সমস্যা হয়।

আর ঠান্ডা বাতাস, ধুলা, ধোঁয়া থেকে দূরে থাকার জন্যও মাস্কের বিকল্প নেই। আপনার উপসর্গ না কমলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আপনার মোড়ের চিকিৎসকই এ সমস্যার সমাধানে যথেষ্ট। সিভিয়ার কেসে অ্যালার্জিস্ট, নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ দেখাতে হতে পারে।

অ্যাজমা
ধুলা ও ধোঁয়া থেকে বাঁচতে মাস্ক পরা জরুরি
অনেকেরই এ সময় অ্যাজমার প্রকোপ বেড়ে গিয়ে শ্বাসকষ্ট দেখা যায়। অনেকেরই ভুল ধারণা আছে, অ্যাজমার ইনহেলার একবার শুরু করলে সেটা সারা জীবন ব্যবহার করতে হয়।

প্রথমত, এটি ভুল ধারণা। দ্বিতীয়ত, অ্যাজমা ক্রনিক কন্ডিশন। মানে রোগটিই এমন, যত্ন না নিলে অনেক দিন ভুগতে হবে। প্রতিবছর, এমনকি সারা জীবন ভুগতে হয়। আর তার চিকিৎসাই হচ্ছে ইনহেলার। বিভিন্ন ধরনের ইনহেলার আছে। অ্যাজমারও রকমফের আছে। আমি সাধারণ একটি ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করছি।

অ্যালার্জি নিয়ন্ত্রণে না থাকলে অ্যাজমা অ্যাটাক হতে পারে। যেকোনো ভাইরাল সর্দি-কাশিও অ্যাজমার সমস্যা সৃষ্টি করে দিতে পারে। তাই প্রথমেই অ্যালার্জির যত্ন নিন। সাধারণ সর্দি-কাশিও অবহেলা করবেন না। এই সাধারণ সর্দি-কাশি থেকে অ্যাজমা, নিউমোনিয়া থেকে শুরু করে কমপ্লিকেশনে মৃত্যুও হতে পারে।

অনেকের দৌড়ঝাঁপ বা এক্সারসাইজ ইনডিউসড অ্যাজমা থাকে। তাদের অবশ্যই দৌড়াদৌড়ির আগে রেসকিউ ইনহেলার চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবহার করতে হবে।

যাঁদের অ্যাজমা আছে, তাঁরা অবশ্যই গরম পোশাক পরিধান করুন, ঠান্ডা বাতাস, সিগারেট, পারফিউম পরিহার করে চলুন। যাঁদের অলরেডি ইনহেলার আছে, তারা শ্বাসকষ্টে, বুকে চাপ বোধ হলে বা হুইজিং ( বাঁশির মতো শব্দ) হলে রেসকিউউ ইনহেলার শুরু করুন যদি জানেন, কীভাবে তার ব্যবহার করতে হয় তবেই।
অন্যথায় শিগগির পাশের ডাক্তার দেখিয়ে জেনে নিন আপনার কী প্রয়োজন। কী কী ওষুধের প্রয়োজন, কত দিন এবং কীভাবে কোন ওষুধ ব্যবহার করতে হবে। কারণ, অ্যাজমার প্রকারভেদ এবং তার সিরিয়াসনেসের ওপর নির্ভর করে কী কী ওষুধ লাগবে।

অনেক সময় দুটো ভিন্ন ইনহেলার লাগে, স্টেরয়েড লাগে শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহ কমাতে, তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক অনেক ওষুধ লাগে। তাই যদি দেখেন সমস্যা কমছে না, অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ইনহেলার নিয়ে বলার আরও একটি কারণ হচ্ছে, এটিই প্রধান চিকিৎসা অ্যাজমার। আর এটি ব্যবহার না করার কারণে শ্বাসপ্রশ্বাসের ভীষণ সমস্যা হয়ে, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।

তাই সঠিক চিকিৎসাতেও শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে নিকটস্থ হাসপাতালে চলে যেতে বিন্দুমাত্র দেরি করবেন না। অক্সিজেন লাগতে পারে, মনিটরড চিকিৎসা লাগতে পারে। জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে পৌঁছানোর আগেই পর্যাপ্ত চিকিৎসার সুব্যবস্থা করুন। শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা আপনার হৃদযন্ত্র মানে হার্টের ওপরও চাপ প্রয়োগ করে। তাই সময়েই সাবধান হোন।

সিওপিডি
শ্বাসতন্ত্রের যে রোগটি নিয়ে না বললেই নয়, তা হচ্ছে সিওপিডি। সিগারেট যাঁরা খান, তাঁদের মোটামুটি প্রত্যেকেই এ রোগে ভুগবেন। কেউ অল্প বয়সে, কেউ বয়সকালে। আর বয়সের সঙ্গে সঙ্গে শ্বাসকষ্ট বাড়তেই থাকে। এঁদের মোটামুটি সারা বছরই চিকিৎসায় থাকতে হয়। তবে কখনো কখনো যখন শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়, তখন অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। চিকিৎসাব্যবস্থার পরিবর্তন হয় রোগের ওপর। তাই কোনোভাবেই অবহেলা করবেন না।

অনেকেরই সারাক্ষণ ব্যবহারের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডারও লাগে। তাই বয়সকালে ভীষণভাবে শ্বাসকষ্টে ভুগতে না চাইলে সিগারেট আজই ত্যাগ করুন।
সিগারেট ছাড়া সহজ নয় অবশ্যই। তবে অসম্ভবও নয়। এ ব্যাপারেও আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।

অভিভাবকদের ধুমপানের কারণে সন্তান পরোক্ষ স্মোকিংয়ের শিকার হচ্ছে

সিগারেটের আরেক সমস্যা হচ্ছে শ্বাসতন্ত্রের ক্যানসার। শুধু যিনি সিগারেট খান তাঁরই নয়, তাঁর কারণে তাঁর পরিবার, সন্তান পরোক্ষ স্মোকিংয়ের শিকার হচ্ছে, আর তাঁর কারণে একই সমস্যায় ভুগতে পারে। তাই শুধু নিজের নয়, পরিবারের জন্য হলেও সিগারেটকে না বলুন।

সিগারেটের জন্য শ্বাসতন্ত্র পরিষ্কারের সমস্যা হয়, শ্বাসতন্ত্রে যে ব্রাশ আছে তাকে সিলিয়া বলে, সিগারেট এদের কর্মক্ষমতা কমিয়ে দেয়।

সাইনাসের প্রদাহ

শ্বাসতন্ত্রের আরও যে রোগের কথা না বলতেই হয়, তা হচ্ছে সাইনাসের প্রদাহ বা সাইনোসাইটিস। বেশির ভাগ লোকই ভোগেন এতে। অ্যালার্জি, ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া সবকিছুই সাইনাসের প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে। এমনকি কোভিড রোগীদের ৯৯ শতাংশ এই প্রদাহে ভোগে।

এর চিকিৎসাও মাল্টিডিসিপ্লিনারি। অনেক ক্ষেত্রেই অ্যান্টিবায়োটিক লাগে। চিকিৎসকের পরামর্শে অবশ্যই ওষুধ খাবেন। অনেকের ক্রনিক মানে দীর্ঘমেয়াদি প্রদাহ হয়, সে ক্ষেত্র নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ দেখাবেন অবশ্যই। অনেক ক্ষেত্রে সার্জারিও লাগে।

ব্রংকাইটিস
এটিও শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহ। চিকিৎসা অনেকটাই অ্যাজমার মতো, সঙ্গে আনুষঙ্গিক চিকিৎসা আছে। যদি এরও যথাযথ চিকিৎসা না নেন, ভুগতে হতে পারে কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস।

অ্যাজমা, সিওপিডি কন্ট্রোলে না থাকলে অবশ্যই শ্বাসতন্ত্র বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মেনে চলবেন। অনেক সময়ই তাঁদের সঙ্গে ঘন ঘন দেখা করতে হতে পারে, সে ক্ষেত্রে কোনো অবহেলা করবেন না।

যাঁদের এসব শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা আছে, শুধু তাঁরাই জানেন, বাতাসের মূল্য! যখন বাতাসের মধ্যে থেকেও শ্বাস নেওয়া অসম্ভব হয়ে যায়, তার কষ্ট একজন আপাত সুস্থ মানুষ কখনোই বুঝতে পারবেন না। আর এটি শুধু শারীরিক কষ্টই নয়, তার পরিবারও এ ক্ষেত্রে ভোগে; কারণ এর ওষুধ দীর্ঘমেয়াদি আর খরুচেও। তাই শ্বাসতন্ত্রের যথাযথ যত্ন নিন।

সিগারেট না বলুন
সিগারেট পরিহার করা বাঞ্ছনীয়
কোভিডের কারণে শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহ আরও কঠিন হয়ে গেছে। সাইনোসাইটিস, ব্রংকাইটিস, অ্যাজমা, সিওপিডি ফ্লেয়ারআপ হচ্ছে। নিউমোনিয়ার সঙ্গে শ্বাসতন্ত্রে রক্ত জমাট বেঁধে (যাকে ডাক্তারি ভাষায় পালমোনারি এমবোলিজম বলা হয়) শ্বাস নেওয়াটাই কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তাই সতর্ক হোন! ভালো থাকুন। মাস্ক পরুন, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন। নিজে বাঁচুন, অন্যকে বাঁচান। অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু প্রতিরোধ করুন।

লেখক: ফ্যামিলি মেডিসিন ফিজিশিয়ান

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%8F-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A6%A4%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AF%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%A8

44
মেয়েদের লং কোভিডের হার পুরুষের তুলনায় বেশি।

পোস্ট-কোভিড সিনড্রোম বা লং কোভিড কেন হয়, তা বিজ্ঞানীদের কাছে এখনো পুরোপুরি পরিষ্কার নয়। এ বিষয়ে গবেষণা চলছে।

করোনায় বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে লং কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এ ছাড়া দুর্বল রোগ প্রতিরোধক্ষমতা, অপ্রতুল মানসিক শক্তি, পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস, পরিবার বা কাছের লোকদের সহযোগিতা না পাওয়াও দায়ী।

লেখা
ডা. রওশন আরা খানম

কোভিড-পরবর্তী স্বাস্থ্য সমস্যায় করণীয় কী
আমরা কোভিড-১৯–এর সঙ্গে একটা লম্বা সময় পার করেছি। কেউ কেউ কোভিড-১৯ মুক্ত হয়ে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক জীবন ফিরে পেয়েছেন। কিন্তু অনেকেই  ফুসফুসজনিত ও ফুসফুস–বহির্ভূত নানা উপসর্গ থেকে মুক্ত হচ্ছেন না, আবার কেউ কেউ পুরোপুরি ভালো হয়ে আবারও এ ধরনের উপসর্গ নিয়ে আসছেন। একে পোস্ট-কোভিড সিনড্রোম বা লং কোভিড বলা হচ্ছে।

পোস্ট-কোভিড সিনড্রোম উপসর্গগুলোর মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী কাশি, শ্বাসকষ্ট; বিশেষত অল্প কাজেই হাঁপিয়ে ওঠা, দুর্বলতা, অহেতুক দুশ্চিন্তা, অবসন্নতা, নিদ্রাহীনতা, বুক ধড়ফড় করা, গায়ে ব্যথা, মনোযোগের ঘাটতি, চুল পড়ে যাওয়া অন্যতম।

যারা অন্যান্য অসুখে ভুগছেন, যেমন উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, বয়স্ক (৫০–এর বেশি বয়স), স্থূলতা, কোভিড আক্রান্ত হওয়ার প্রথম সপ্তাহে যাদের পাঁচ বা ততোধিক উপসর্গ ছিল, যারা লম্বা সময় হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন, তাদের লং কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি। তবে এটা যে কারও হতে পারে, এমনকি যারা মৃদু উপসর্গে ভুগেছেন, তাদেরও। এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে ২-১০ শতাংশ রোগী, যারা কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের এটা হতে পারে। এ সময় রোগীরা কিন্তু অন্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ নয়।

লং কোভিড কেন হয়, তা বিজ্ঞানীদের কাছে এখনো পুরোপুরি পরিষ্কার নয়। এ বিষয়ে গবেষণা চলছে। তবে করোনায় বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে লং কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এ ছাড়া দুর্বল রোগ প্রতিরোধক্ষমতা, অপ্রতুল মানসিক শক্তি, পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস, পরিবার বা কাছের লোকদের সহযোগিতা না পাওয়াও দায়ী। মেয়েদের লং কোভিডের হার পুরুষের তুলনায় বেশি।

লং কোভিডের বিশেষ কোনো চিকিৎসাব্যবস্থা এখনো আসেনি। অনেকেই পর্যাপ্ত বিশ্রাম, উপসর্গ অনুযায়ী চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ধীরে ধীরে আগের অবস্থানে ফিরে আসছেন। তবে অবশ্যই পরীক্ষা–নিরীক্ষা করে শারীরিক বড় ধরনের সমস্যা থাকলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে।

পরামর্শ
নিয়মিত সুষম খাবার খাওয়া এবং নিয়মিত ও নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের চেষ্টা করতে হবে।

দুশ্চিন্তা ঝেড়ে ফেলতে হবে। পোস্টট্রমাটিক স্ট্রেস থেকে বের হতে আপনার পূর্ণ ইচ্ছাশক্তি আপনাকে এগিয়ে নেবে। এখানে পরিবারের সবার সহযোগিতা দরকার।

শ্বাসকষ্টের রোগীদের নিয়মিত পালস অক্সিমিটার দিয়ে অক্সিজেনের মাত্রা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। বসে থাকা অবস্থায় অক্সিজেন ভালো থাকলে, সমান্তরালে নিয়মিত হাঁটুন, ৪০ ধাপ হেঁটে আবারও অক্সিজেনের মাত্রা দেখুন। মাত্রা ৯২ শতাংশের কম হলে বাসায় অক্সিজেন নিতে হতে পারে (কিছু কিছু ফুসফুসের নির্দিষ্ট সমস্যা ছাড়া)। প্রয়োজনে ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

নিয়মিত ব্রিদিং এক্সারসাইজ করতে হবে। আরামদায়ক পজিশনে বসে ধীরে ধীরে লম্বা করে পেট ফুলিয়ে শ্বাস নিন, নাক দিয়ে নিয়ে মুখ দিয়ে ছাড়ুন। এতে আপনার ফুসফুসের কর্মক্ষমতা বাড়বে। শ্বাসকষ্ট, কাশি কমবে।

ফুসফুসের পুনর্বাসন—যারা অনেক বেশি সমস্যায় ভুগছেন, বিশেষত শ্বাসকষ্টে, তারা বেশি উপকৃত হবেন। বিভিন্ন বিশেষজ্ঞরা আপনাকে একসঙ্গে কিছু ব্যবস্থাপনা দেবেন। বিভিন্ন ধরনের ব্যায়াম, মনোবিজ্ঞানীর পরামর্শ, পুষ্টিবিদের দেওয়া খাদ্যতালিকা ও ওষুধ আপনাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে সাহায্য করবে। এ ছাড়া আপনার নির্দিষ্ট কোনো সমস্যা থাকলে তারও সমাধান হয়ে যাবে।

সর্বোপরি করোনামুক্ত থাকার জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। কারণ প্রতিরোধই উত্তম উপায়।

কোভিড-১৯–এর টিকা নিন, নিরাপদে থাকুন।

লেখক: কনসালট্যান্ট, বক্ষব্যাধি, ইউনাইটেড হাসপাতাল

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%95%E0%A7%8B%E0%A6%AD%E0%A6%BF%E0%A6%A1-%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A6%AC%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%80-%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%A3%E0%A7%80%E0%A7%9F-%E0%A6%95%E0%A7%80

45
আমাদের দেশে বহু বছরে ধরে সমস্ত সবজিবাজারে, এমনকি ঝাঁকা মাথায় ফেরিওয়ালার কাছেও বিট পাওয়া যায়। তারপরও এই বিট আমাদের কাছে মোটামুটি স্বল্প ব্যবহৃত আর অল্প পরিচিত হয়েই রয়ে গেল। একমাত্র বিশেষ দাওয়াতে বা বিয়েবাড়িতে মিক্সড সালাদের সঙ্গেই এ দেশে বিট খাওয়া হয়। অথচ বিশ্বব্যাপী সর্বত্র বিট একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় সবজি। কাঁচা, রান্না করে বা বেকিংয়ে ব্যবহার করে এই সুমিষ্ট সুস্বাদু সবজি বহু রকম উপাদেয় উপায়ে খাওয়া যায়। আর সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে, স্বাস্থ্যগত দিক থেকে দেখতে গেলে বিট বা বিট রুটের আছে অনন্যসাধারণ সব উপকারিতা।

স্বাস্থ্যগত দিক থেকে দেখতে গেলে বিট বা বিট রুটের আছে অনন্যসাধারণ সব উপকারিতা
বিট রুটের পরিচয় ও ইতিহাস
বিট আসলে একধরনের মূলজাতীয় সবজি। অর্থাৎ বিটগাছের মূলই হচ্ছে এর প্রধান খাদ্যোপযোগী অংশ। সাধারণত, এই বিটের মূল গাঢ় বেগুনি-লাল বর্ণের হয়ে থাকে। বিটের চোখজুড়ানো লাল রং আসলে বিটালাইন বা এন্থোসায়ানিনযুক্ত রঞ্জক পদার্থেরই অবদান। কিন্তু পৃথিবীতে হলুদ, সাদা, এমনকি বহুরঙা বিটরুটও পাওয়া যায়। অসম্ভব রসাল এই প্রধানত বেগুনি-লাল বিটে জলীয় অংশ অনেক বেশি। তাই খোসা ছিলতে বা কাটতে গেলেই একেবারে ছলকে রক্তবর্ণ রস বেরিয়ে আসে।

বিট মিষ্টি স্বাদের হয়। সেই সঙ্গে মিষ্টি আলুর মতোই খুব অন্য রকম একটা মেটে ফ্লেভার পাওয়া যায় বিটে। বিট থেকে বিভিন্ন দেশে চিনিও উৎপাদিত হয়। এটি কাঁচা অবস্থায় সালাদে, সেদ্ধ বা বেক করে, বিভিন্ন অন্যান্য উপকরণের সঙ্গে স্যুপ, স্টু, স্টার ফ্রাই, সস বানিয়ে ইত্যাদি মজার মজার কায়দায় খাওয়া যায়। বিটের পাতাও শাকের মতো ভেজে খেতে খুবই উপাদেয়।

হলুদ বিট
এই বিট রুটের আছে লম্বা ইতিহাস। জানা যায়, পশ্চিম আফ্রিকা ও এশিয়ার সাগরতীরের দেশগুলোয় বুনো বিট এমনিতেই জন্মাত। এর পাতাই মূলত খাওয়া হতো। এরপর রোমানরা বিটের মূলকে খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করেছিল। ইতিহাসে আছে, ব্রিটিশদের সঙ্গে যুদ্ধকালে যখন ফ্রান্সে আখের চিনি আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা এল, তখন নেপোলিয়নের নির্দেশে বিট থেকে চিনি উৎপাদনের সূত্রপাত হয়েছিল। পরে আমেরিকাতেও এর প্রচলন ঘটে।

বিটের স্বাস্থ্যগুণ
বিটের আছে অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট, অ্যান্টি–ইনফ্ল্যামেটরি বা প্রদাহরোধী এবং আমাদের শরীরকে ডিটক্স করা বা বিশুদ্ধীকরণের পরীক্ষিত ক্ষমতা। তবে এই বিটালাইন পর্যাপ্ত পরিমাণে পেতে আমাদের বিট যতটা সম্ভব কম সময় ধরে রান্না করতে হবে। কাঁচা খেলে এর গুণাগুণ পাওয়া যায় সবচেয়ে বেশি।
বিটের গুণাগুণ বলে শেষ করা কঠিন। মূলত, এর অনন্য স্বাস্থ্যগুণের সঙ্গে এতে উপস্থিত ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস নামের অভিনব ধরনের পুষ্টি উপাদানগুলোর ওতপ্রোত সম্পর্ক রয়েছে। স্বাস্থ্যকর উদ্ভিজ্জ উৎস থেকে পাওয়া এই ফাইটোনিউট্রিয়েন্টসগুলো আমাদের দেহ-মনের বিকাশ, বৃদ্ধি আর সুস্থতায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

বিট থেকে পাওয়া ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট বিটালাইন আমাদের জন্য অতি উপকারী। এর আছে অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট, অ্যান্টি–ইনফ্ল্যামেটরি বা প্রদাহরোধী এবং আমাদের শরীরকে ডিটক্স করা বা বিশুদ্ধীকরণের পরীক্ষিত ক্ষমতা। তবে এই বিটালাইন পর্যাপ্ত পরিমাণে পেতে আমাদের বিট যতটা সম্ভব কম সময় ধরে রান্না করতে হবে। কাঁচা খেলে এর গুণাগুণ পাওয়া যায় সবচেয়ে বেশি। আর বিট রান্না করতে মোটেই এর পানি ফেলা যাবে না।

বিটের আরেকটি খুব ভালো গুণ হলো এতে ক্যালরি কম থাকে। অথচ এতে মানবদেহে প্রয়োজনীয় সব ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে। বিটে আছে প্রচুর ভিটামিন সি, ফোলেট, পটাশিয়াম, আয়রন ইত্যাদি। পানি ও আঁশের পরিমাণ যথেষ্ট হওয়ায় হজম ভালো রাখা এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে বিট কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও বিট খাওয়া অত্যন্ত ফলপ্রসূ হতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে কাঁচা বিটের কার্যকারিতা বেশি পাওয়া গেছে। এতে থাকা নাইট্রেট লবণ রক্তনালিকে প্রসারিত করতে পারে বলেই এমন প্রভাব দেখা যায়। এ উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে হৃদ্‌রোগের আশঙ্কা অনেকটাই কমে আসে। তবে সে ক্ষেত্রে নিয়মিত কাঁচা বিটের রস পান করে ভালো ফল পাওয়া যায়।

বিট আমাদের প্রাণশক্তি ও কাজের উদ্যমকে বাড়িয়ে তোলে

বিট আমাদের প্রাণশক্তি ও কাজের উদ্যমকে বাড়িয়ে তোলে। দেহে অক্সিজেনের কার্যকরী ব্যবহারে বিটের ভূমিকা আছে বলে দৌড়বিদ ও অন্য খেলোয়াড়েরা নিয়মিত বিট খেয়ে থাকেন থাকেন। আবার এর বিটালাইন নামক ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট কিডনিসহ আরও অঙ্গপ্রত্যঙ্গের প্রদাহকে কমাতে পারে বলে অনেক চিকিৎসাবিজ্ঞানী মনে করেন।

বিভিন্ন গবেষণায় গিঁটে বাত বা আর্থ্রাইটিসের ব্যথা উপশমে বিট জুসের সক্রিয় ভূমিকা দেখা গেছে। এক কাপ বিটরুটে প্রায় ৩.৪ গ্রাম আঁশ আছে। তাই বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটের প্রদাহে নিয়মিত বিট খেলে বেশ উপকার পাওয়া যায়। বিটের নাইট্রেট উপাদান মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দিয়ে বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন মানসিক সমস্যা, যেমন: ডিমেনশিয়া, স্মৃতিভ্রংশ ইত্যাদির ক্ষেত্রে খুবই ভালো ফল দিতে পারে। তবে এ ব্যাপারে আরও গবেষণা চলছে।

বিটে থাকা প্রচুর অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট ক্যানসার সৃষ্টিকারী কারসিনোজেনের বিরুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে বলে গবেষকেরা প্রমাণ পেয়েছেন।
এ ছাড়া চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা দেখতে পেয়েছেন, টিউমার কোষের বৃদ্ধিকে বাধা দিতে বিটের জুড়ি নেই। বিভিন্ন প্রমাণিত গবেষণায় উঠে এসেছে, বিটের বেটানিন নামক রঞ্জক পদার্থ টিউমার কোষগুলোকে উত্তেজিত করে তোলা এনজাইমগুলোর বিরুদ্ধে শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে পারে। এই ইতিবাচক ফলাফল ক্যানসার গবেষণার ক্ষেত্রেও প্রচুর সম্ভাবনার আলো দেখাচ্ছে। বিটে থাকা প্রচুর অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট ক্যানসার সৃষ্টিকারী কারসিনোজেনের বিরুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে বলে গবেষকেরা প্রমাণ পেয়েছেন।

আমাদের নিত্যদিনের খাদ্যতালিকায় বিট
মাঝেমধ্যে না খেয়ে একেবারে নিয়মিত খেলেই বিটের স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পূর্ণরূপে পাওয়া যায়। তাই আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় বিট অন্তর্ভুক্ত করা খুবই প্রয়োজন। এটি কাঁচা বা সামান্য ভাপিয়ে সালাদ হিসেবে খাওয়া যায় এমনিতেই বা অন্য সবজির সঙ্গে। পানি ঝরানো টক দই, হমুজ (humus), মেয়োনেজ, গার্লিক সস, বার্গার বা শর্মার সসে বিট বেটে বা ব্লেন্ড করে মেশালে অদ্ভুত সুন্দর রং আসে। খেতেও সুস্বাদু হয়।

কাঁচা খেলে বিটের গুণাগুণ পাওয়া যায় সবচেয়ে বেশি

তাজা বিট সবজি কুরুনিতে মিহি করে কুরিয়ে চিপে ছেঁকে পানি মিশিয়ে তৈরি করা যায় মজাদার আর অসম্ভব রকমের পুষ্টিকর বিট জুস। জুসার দিয়েও এই জুস বানানো যায়। একটু বিটলবণ আর লেবু মিশিয়ে অথবা এমনিতেই এই জুস রোজ পান করলে পাওয়া যাবে বহু উপকারিতা। আর বিটের পাতা সামান্য রসুন-মরিচে হালকা ভেজে শাকের মতো খেলে তা থেকে পাওয়া যায় আরও সব ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস, যা কিনা চোখের জন্য খুবই উপকারী।

আমাদের জন্য বিট খুব অপরিচিত কোনো সবজি নয়। এর অতুলনীয় স্বাদ, চোখজুড়ানো রং আর অনন্য সব স্বাস্থ্যগুণের কথা মাথায় রেখে আমাদের বেশি বেশি বিট খাওয়ার প্রচলন ঘটাতে হবে। আমাদের মাটি ও জলবায়ু বিট চাষের জন্য যথেষ্ট উপযোগী হওয়ায় বিট চাষের প্রসার বাড়লে আমাদের কৃষিক্ষেত্রেও উন্নতি সাধন করা হবে।

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%B0%E0%A6%99%E0%A6%BF%E0%A6%A8-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BF

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 24