Daffodil International University

Religion & Belief (Alor Pothay) => Islam => Useful Videos on Islamic Topics => Topic started by: Faruq Hushain on March 22, 2020, 04:18:25 PM

Title: যে সাহাবির বাড়ি ছিল নবীজির প্রাথমিক কার্যালয়
Post by: Faruq Hushain on March 22, 2020, 04:18:25 PM
হজরত আরকাম (রা.):

হজরত আরকাম (রা.)-এর উপনাম আবু আবদুল্লাহ। পিতা আবদে মুনাফ ওরফে আবুল আরকাম ইবনে আসাদ। মা উমাইমা বিনতে হারিস। আরকাম (রা.) প্রবীণ মুসলমান এবং প্রথম সারির মুহাজির। ইসলাম গ্রহণের দিক থেকে তিনি সপ্তম, মতান্তরে একাদশ। (আল-ইসতিআব ১/১৩১; আত তাবকাতুল কুবরা ৩/১৮৩)।

ইসলামের প্রাথমিক যুগে রাসুল (সা.) প্রকাশ্যে দাওয়াতি কাজ করার জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে আদিষ্ট ছিলেন না। তাই তিন বছর পর্যন্ত গোপনীয়তা বজায় রেখে দ্বিনের দাওয়াত দিয়েছেন। যাঁদের প্রতি ভালো ধারণা হতো শুধু তাঁদেরই দাওয়াত দিতেন। একপর্যায়ে রাসুল (সা.) এই ভাগ্যবান সাহাবি আরকাম ইবনে আবুল আরকাম (রা.)-এর বাড়িকে দ্বিনি দাওয়াত ও নওমুসলিমদের কোরআন শিক্ষা ও তালিমের জন্য নির্বাচন করেন। ‘সাফা’ পাহাড়ের কাছেই ছিল তাঁর বাড়িটি। এই বাড়িতে বহুসংখ্যক সাহাবি ইসলাম গ্রহণ করেন। ওমর (রা.)ও এই বাড়িতে ইসলাম গ্রহণ করেন। তখন মুসলমানের সংখ্যা দাঁড়ায় ৪০-এ। এরপর রাসুল (সা.) মহান আল্লাহর নির্দেশে গোপনীয়তা বর্জন করে প্রকাশ্যে দ্বিনের দাওয়াত দেওয়ার জন্য আদিষ্ট হন। অন্যদিকে ওমর (রা.)ও ইসলাম গ্রহণের পর প্রিয় নবীকে গোপনীয়তা বর্জন করে প্রকাশ্যে দাওয়াতি কাজ পরিচালনা করার পরামর্শ দেন। তখন রাসুল (সা.) আরকাম (রা.)-এর বাড়ি থেকে বেরিয়ে সাহাবায়ে কেরামকে সঙ্গে নিয়ে সর্বপ্রথম প্রকাশ্যে বাইতুল্লাহ তাওয়াফ করেন। এর পর থেকে প্রকাশ্যে দ্বিনি দাওয়াতে আত্মনিয়োগ করেন। (আল-ইসতিআব ১/১৩১-১৩২; সিরাতে খাতামুল আম্বিয়া : ৩৮-৩৯)

হিজরত ও যুদ্ধ

হিজরতের সময় হলে আরকাম ইবনে আবুল আরকাম (রা.) মক্কা ছেড়ে চলে যান মদিনায়। রাসুল (সা.) তাঁর ভ্রাতৃত্ব সম্পর্ক করে দেন আবু তালহা জায়েদ ইবনে সাহল (রা.)-এর সঙ্গে। মদিনার জীবনে তিনি রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে বদর যুদ্ধ থেকে শুরু করে সব যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

ইন্তেকাল

আরকাম ইবনে আবুল আরকাম (রা.) ৫৫ হিজরি সনে মদিনায় ইন্তেকাল করেন। তখন তাঁর বয়স ছিল ৮০ বছরের বেশি। তাঁর অসিয়ত ছিল প্রসিদ্ধ সাহাবি সাআদ ইবনে আবুওয়াক্কাস (রা.) তাঁর জানাজা পড়াবেন। অসিয়ত অনুযায়ী সাআদ (রা.) জানাজা পড়ান। (আল-ইসতিআব ১/১৩২)