Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Maruf Reza Byron

Pages: 1 [2] 3 4 5
16
In my consideration, selling tobacco means selling DEATH and DISEASES to the consumers.
 
There are only two logic behind tobacco business: firstly, it pays high tax to the government; and secondly, it creates employment for the people. Despite these two logic I strongly believe that this industry should be banned in our country as it offers SLOW POISONING to the people.
 
A business activity may be highly profitable, but if it does not contribute in the long-term sustainable development of a country we should not support the business. As tobacco industry is destroying the ECOLOGICAL BALANCE  we can not support it.
 
I truly dream a fully tobacco-free-society for our next generation!

17
Department of Innovation & Entrepreneurship / be ACTIVE LEARNER...
« on: May 28, 2017, 12:00:21 PM »
We are trying to create a new generation business graduates; to set a new trend in the academic arena which will make students free from the traditional syllabus-based, GPA-centered education system. Without your active cooperation our dream will not come true. So dear friends, be ACTIVE in learning, don't stuck with the syllabus only; try to learn from each other by sharing your own ideas. CMS has created the platform - the CMS Blog. Read-write-share blog posts with your friends. Write in Marketing Review, and join our STUDY CIRCLE. I am confident that days will come when hundreads of business graduates of Bangladesh will follow us, will follow you. WE SHALL OVERCOME SOME DAY...

18
[Don’t be a generic product, be a brand. Don’t be an ordinary employee, be a leader.]


Are you an average BBA/MBA student? Are you shaky about your present soft skills? Are you worried of your career path? Are you looking for jobs? Are you feeling deprived for not getting promoted at your present job? Or, are you suffering from fear of losing your position, responsibility, or even your job? The usual syllabus of universities can at best make a person an Ordinary Employee. Eventually, in reality, after completing graduation the young job seekers need to fight against the graduates of Branded institutions like IBA, Dhaka University etc. By practicing the following Five Habits you can also be a strong Brand and can create a distinguished position in the job market:
 
Habit#01: BBC Radio/TV
Listen to BBC radio on your cell phone by using an air phone, and/or watch BBC TV channel (or CNN, Al-Jazeera, Discovery etc) for half an hour daily. Take notes, if needed.
 
Habit#02: Newspaper/Magazine
Read an English daily newspaper/magazine form home and abroad for half an hour daily (you may read Daily Star, especially Star Business, New York Times,Time, Wall Street Journal, The Economist, Business Week, Business World, or any other famous newspaper/magazine). Take notes, if needed.
 
Habit#03: Blog
Read business blogs of local and international experts daily for half an hour (you may read Seth Godin, Tom Peters, Harvard Business Review Blog, CMS Blog, Khandoker’s Marketing Blog etc.). Take notes, if needed.
 
Habit#04: Writing your own
Write a blog post daily. Spend half an hour for it. You should write on few selective areas so that in a course of time you can be an expert on those areas. Publish your blog posts through a free web space at wordpress.com or any other free website;or through Facebook notes; or through CMS Blog. Please keep records of your writings and submit whenever needed.
 
Habit#05: Speaking
Share your information, knowledge, idea, and project with others in official meetings, open forums, study groups, clubs, or professional societies formally.

Remember, small change in habits can bring BIG changes in your career as well as in your life.

19
Department of Innovation & Entrepreneurship / The Secret of Success
« on: May 28, 2017, 11:58:04 AM »
What does success mean? Is there any person/company in the world who does not want to be successful? How can I/we be successful? What is the secret of success? These are the burning questions of millions of youngsters of today’s world. If you truly want to get success you must realize the inherent meaning of it. I have my own view about success and which is not a“rocket science” to understand. Here it goes:

In my opinion, there are two views of success. Firstly, the traditional selfish view which reflects a “Me Society”: Success is the art of compromise; compromise with the existing system. Secondly, the new view of success which reflects a “We Society”: Success is the passion to change - to change oneself to change the system which will again change others following the system - through innovation.

The SECRET meaning of SUCCESS
      S - Sacrifice
      U (you) - Yourself
      C - Creative
      C - Change
      E - Empower
      S - Social
      S - System

My definition of SUCCESS
Success is the art of “sacrificing yourself for creative change to empower social system.” Here “social system” refers to three components:
        - Me (the way of my living)
        - My family (the justification of my existence)
        - My surroundings (the larger system of which I am a part)

Bottom line
You are the gladiator. You can create revolution. It is you who can change the world. Do it yourself.  Be successful!

20
Many of my friends ask me, “Would you please tell us why so many students are studying BBA now-a-days?” Sometimes, I can satisfy them with my answer. Some othertimes, I also get confused, and then ask myself, “Yes, why so many students are studying BBA now-a-days?!”

I have been teaching at BBA program for the last ten years. During these years, I have worked for three different private universities in Dhaka city. In each of those universities I have seen the same thing: the majority of the students of the university (sometimes more than half of the total number of students of the university) are studying BBA. Several times I have asked to many of those students the same question, “Why are you studying BBA?” Unfortunately, most of the times, they could not give me a logical answer. Many of them, at best, told me that their parents suggested them to study BBA. It proves that our students are not aware of their career planning.

Yes, I know, there is a huge demand for BBA graduates in the job market. But have you ever thought about what sort of job positions match with the syllabus of the BBA program? Have you focused your career goal in a careful way? Have you asked yourself ever that in which position you want to find you after five or ten years from now? Have you ever analyzed your SWOT as a potential human resource? I may ask many more similar questions. But I know, I will not get any rational answer from my students (There may be few exceptions.).

As the students do not know why they are studying BBA, and as they are not careful about their future career, they do not also choose the Major area of BBA program in a reasonable way. In the university I am currently serving, more than seventy percent students of BBA program are doing Major in Finance without any thorough judgment. It is really shocking that the students are choosing their Major area on the basis of their friend’s choice only. They are not even think of if they will enjoy the course contents or they will be able to manage the challenge of the course materials. As a result, after few days, they cannot do well in those Major courses and get frustrated. In the long run, it hampers their possibility to get hired by a good employer.

So, dear students, at the very beginning of your BBA program you must ask some questions to yourself: what should be your Major area in BBA? What should be your Minor area in BBA? Does your chosen Major area match with your area of strength? Do your chosen Major and Minor area match with each other? Should you do a double major at BBA level? Should you choose different Major areas in your BBA and MBA levels? Should you do your BBA and MBA from different universities? How to develop networks? Should you join a part-time job while studying BBA? Will a high CGPA be enough to get a sound career? Who are the major employers for the business graduates of your chosen Major area in Bangladesh? Remember, you must get a clear answer of each of these questions right now. Otherwise, you will be in danger at the end of your graduation, I am sure.


Bottom line: Explore your SWOT. Focus your dream career position. Choose your Major area of BBA program according to your strengths; unless it will be suicidal for you and will destroy your life without any exception.

21
Department of Innovation & Entrepreneurship / Do some EXTRA!!!
« on: May 28, 2017, 11:55:17 AM »
There is no syllabus of life. Your CGPA will not give you the guaranty to get a good career alone. In this hyper competitive market, if you want to embrace success you must do something EXTRA to empower your career. Here, I am suggesting a course of actions to make you an artistic personality:
 
Dhanmondi is the cultural hub of Dhaka city. You should visit the cultural centers of this area such as Drik Gallery, Bengal Gallery, Dhaka Art Center, Chhayanot, Robindro Shorobor, Gallery Chitrak, WVA etc at a regular basis. It will help you to refresh yourself and get you free from the boredom of your study.
 
At the same time you may get membership of different prestigious knowledge harbors like Asiatic Society of Bangladesh, British Council, Alliance Française de Dhaka, the Goethe-Institut, Russian Cultural Centre, Iranian Cultural Center, The American Center etc. These centers will offer you state-of-the-art knowledge centers with ample collection of local and foreign newspapers, magazines, journals, books, movies, cultural events, short courses, exhibitions, overseas higher education opportunities, scholarship programs etc.
 
Besides Dhanmondi, Ramna and Dhaka University area is another cultural hub of Dhaka city. Regular visit to these areas will acquaint you about the resources of Bangla Academy, Central Public Library, National Museum, Faculty of Fine Arts of Dhaka University, TSC, Shilpakala Academy, Institute of Modern Languages of Dhaka University, International Mother Language Institute etc. By visiting these famous organizations you will be able to update yourself with the contemporary art-culture-photography-film movement-music-publications-study circles-drama-recitation-different festivals-cultural events, and what not.
 
In addition to these, you should have membership of different professional bodies of your area of interest such as Bangladesh Society for Human Resources Management (BSHRM), Center for Marketing Science (CMS), Bangladesh Economic Association (BEA) and so on.
 
All these efforts will enrich your intellectual height, boost up your creativity, enhance your dream, change your vision of life, build up network, supplement your resume and last but not the least, will make you a different personality than others.
 
Bottom Line: Be complete. Be unique. Only then, you will be able to sell yourself to the job market.

22
Marketing is the most controversial discipline among business theorem. There are many popular misconceptions about marketing which we should consider with our highest attention:
      1.       Marketing means Shopping
      2.       Marketing means Selling
      3.       Marketing means Advertising
      4.       Marketing means Telling and Selling
      5.       Marketing is easy task – anyone can do it
      6.       Marketing theories are Less Challenging
      7.       Marketing is the art of Mere Talk (চাপাবাজি)
      8.       Marketing is NOT a Science
      9.       The scope of marketing is very Narrow
      10.     If you study marketing, you will have to sell products from door to door; you will never be the part of the top management
      11.     The marketing professionals must bear the burden of tough TARGETS
      12.     As a profession, marketing is NOT suitable for women (of Bangladesh)
 
It is the time to challenge all these misconceptions about marketing with a logical open mind and to establish the discipline as a prestigious branch of socio-behavioral science.
 
 
Bottom Line: Marketing is the most creative, dynamic, challenging, and growth-oriented profession among all other business professions. In the class room, marketing may be easy. But in the real life, it is truly challenging.

23
Mathematics and English are two vital disciplines which can ensure success of your life. If you have good command in Mathematics you will be treated as a talented student. And your proficiency in English will reflect how smart you are. Unfortunately, in Bangladesh, these two subjects are not taught with proper care at all levels of education. As a result, most of the students of our country remain very weak in Mathematics and English which hampers their career.
 
With few exceptions, in our schools and colleges, there is scarcity of good teachers of Mathematics and English. Consequently, the majority of our students are suffering from fear of these two subjects. They start to avoid these two subjects in their daily routine of study and try to manage the pass marks in these two subjects in the Secondary and Higher Secondary examinations. Moreover, after completing their college life most of the students say “good bye” to these two subjects. In the long run, it creates a permanent phobia of these two subjects in the students’ mind.  They start to forget what they have learnt in their schools and colleges which results in a disastrous situation at the Tertiary level.
 
When the students enter universities we find them full of confusion of their ability in Mathematics and English. Their level of confidence in these two subjects goes to the deep down. They start feeling alien to see all the text books written in English. They face challenges to see about ten quantitative courses in the syllabus of BBA. And the phobia came back in double strength. As a result, his/her academic performance goes poor which directly hampers his/her career.
 
Now the questions come in my mind: Are these two subjects that difficult to face? Is it really impossible to get a good command in Mathematics? Is getting proficiency in English difficult like a rocket science? What can we do to overcome the situation?
 
To overcome the circumstances, you may pursue the following FOUR strategies:
        -    Recognize that Mathematics and English are two major hurdles to get a successful career
        -    Realize that these two hurdles are surpassable
        -    Convince yourself that you can achieve it
        -    Practice regularly with hard determination
 
Punch Line: Everyone has certain limitations. Each limitation is surpassable.

24
http://www.prothom-alo.com/life_style/article/214834/বাংলাদেশে_লাক্সের_৫০_বছর

"৫০ বছর ধরে বাংলাদেশের নারীদের সৌন্দর্যচর্চার সঙ্গী হয়ে আছে লাক্স।" - কথাটা দিয়ে শুরু হয়েছে ফিচারটি। পড়তে গিয়ে খটকা লাগলো মনে। কতো বছর ধরে লাক্স ব্যবহার করছি ঠিক মনে নাই। কখনো ভাবি নাই যে লাক্স শুধু মেয়েদের ব্র্যান্ড। এতো দিন পরে এসে জানতে পারলাম যে লাক্স "নারীদের সৌন্দর্যচর্চার সঙ্গী।" প্রথমে ভেবেছিলাম যে এটা প্রতিবেদকের অতি উৎসাহের ফল। পুরো প্রতিবেদন পড়ে আমার ভুল ভাঙলো। এটা প্রতিবেদকের কোন ভুল নয়। বরং ফিচারের শেষে এসে দেখা গেলো খোদ কোম্পানির পক্ষ থেকেই ব্যাপারটাকে খোলাসা করা হয়েছে - "ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্র্যান্ড বিল্ডিং ডিরেক্টর, পারসোনাল কেয়ার জাভেদ আক্তার বলেন, ‘গত ৫০ বছরে লাক্স বাংলাদেশের নারীদের জন্য শুধু সবচেয়ে প্রিয় সাবানই নয়, হয়ে উঠেছে বিউটি এবং গ্ল্যামারের আরেক নাম।'..."

তাহলে বোঝা গ্যালো যে লাক্স একটা "ফিমেল ব্র্যান্ড"। আর বুঝে হোক বা না বুঝে হোক আমার মতো অনেক ছেলে/পুরুষ লাক্স ব্যবহার করছে এবং এক কথায় প্রতারিত হচ্ছে। এতোটুকুই শুধু নয়। একটু খোঁজ নিয়ে দেখা গ্যালো যে পরিস্থিতি আসলে এর চেয়ে আরও খারাপ। বাংলাদেশের বাজারে পাওয়া যায় এমন প্রায় সব বিউটি সোপই (গায়েমাখা সাবান) এক কথায় "ফিমেল ব্র্যান্ড"। তাহলে ছেলে/পুরুষরা কোন সাবান ব্যবহার করবে? আর 'বিউটি' বা 'গ্ল্যামার' শব্দগুলো কি ফেমিনিন জেন্ডারবাচক?

আসলে লাভের নেশায় মত্ত এসব কোম্পানি যে প্রতারণার মায়াবী জালে আমাদের আচ্ছন্ন করে রেখেছে এক শব্দে তার নাম 'ধোকাবাজি' যার ইংরেজি প্রতিশব্দ 'Branding' বা 'Marketing' বললে কি খুব বেশি ভুল বলা হবে?.

25
[“...নিজের প্রতি যখন ঘৃণা ধরে যায়, তখন আর জীবনের প্রতি মায়া থাকে না; বাঁচতে ইচ্ছা করে না। মনে হয়, মরে যাই।...”]

আত্মহত্যা করা এখন ট্রেণ্ডে পরিণত হয়েছে। তারুণ্যের ক্রেজে পরিণত হয়েছে সুইসাইড। জীবনের প্রতি মায়া না থাকা মূহুর্ত এখন তাদের জীবনে ঘুরে ফিরে আসছে ষড়ঋতুর চেয়েও দ্রুত বেগে। ফলাফল - জীবনের নিদারূন অপচয়। উদ্দেশ্যহীন তারুণ্য এখন “ব্যক্তিগত সুখ” আর ‘আত্মসম্মান’ রক্ষায় মরিয়া হয়ে ছুটছে। এটাকেই মানছে জীবনের “মনজিলে মকসুদ” হিসেবে। আর এর করুণ পরিণতি হিসেবে আমরা পাচ্ছি কিছু শোক সংবাদঃ “প্রেমে ব্যর্থ হয়ে তরুণীর আত্মহত্যা”, পরীক্ষায় ফেল করায় ট্রেনের নীচে জীবন দিল তরুণ”, অথবা, “বাবা-মা’র বকুনিতে অকালে ঝরে গেল তাজা প্রাণ”। আবার কখনও কখনও দুঃখবিলাসী তারুণ্য আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছে এবং কেড়ে নিচ্ছে বাবা-মা, নীতিবান শিক্ষক, অথবা প্রিয়তম মানুষের জীবন।

আমি মনোবিদ নই। আত্মহত্যার মনোবৈজ্ঞানিক বিষয় ব্যাখ্যা করা আমার উদ্দেশ্যও নয়। আমি ছা-পোষা মাস্টার। তাও আবার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের এলিট অধ্যাপক নয়; প্রাইভেট (কিন্তু ব্যক্তিগত নয়) বিশ্ববিদ্যালয়ের নিতান্তই ঘানিটানা ক্ল্যারিক্যাল শ্রমিক-মাস্টার। পড়াই মার্কেটিং। লোভের বাণিজ্য আর লাভের বাণিজ্যের তত্ত্ব পড়াতে পড়াতে হঠাৎ শখ জাগে LOVE-এর বাণিজ্যের প্রতি। সেখান থেকে স্লিপ কেটে পড়ে যাই সুইসাইড মার্কেটিংয়ের মায়াময় জগতে এবং বিমুগ্ধ বিষ্ময় নিয়ে দেখি লাভের নেশায় মত্ত পুঁজিওয়ালারা কিভাবে LOVE-এর ফাঁদে ফেলে কচি তাজা প্রাণগুলোকে সুইসাইডের প্রতি উস্কে দিচ্ছে। ভেবে শিউরে উঠি আমাদের মুভি-নাটক-গান তথা পুরো শোবিজ ইণ্ডাস্ট্রি আমাদের সমাজের ভবিষ্যত কাণ্ডারীদের অকালেই মরে যাবার সব রকম ব্যবস্থাকে অত্যন্ত যত্নের সাথে গ্লোরিফাই করছে কখনও আশিকি টু’র ব্যর্থ প্রেমিক, তো কখনও  আনজানা আনজানি’র আত্মহত্যা  আত্মহত্যা খেলা, আবার কখনও হেমলক সোসাইটি’র হাতেকলমে সুইসাইডশিক্ষার মাধ্যমে। চেহারা যাই হোক, সব গল্পেরই একটাই অব্যর্থ মেসেজঃ যদি নিজেকে স্বার্থক করতে চাও তবে there's always a second chance and that's SUICIDE।

প্রকৃতই সুইসাইডজ্বরে কাঁপছে তারুণ্য। সে জ্বরের উত্তাপ আমাদের এই দেশেও এসে লেগেছে। তাইতো টিভি চ্যানেলের পবিত্র ঈদ উৎসবের আয়োজনেও দেখি সুইসাইডের ঢেউ। ‘উদ্দেশ্য’ শীর্ষক নাটকের মাধ্যমে যদিও সুইসাইডের বিপক্ষে মেসেজ পাঠানো হয় যে জীবন একটি পবিত্র উপহার; এটা নষ্ট করার কোন উদ্দেশ্যই নাই... ইত্যাদি ইত্যাদি... তারুণ্য কিন্তু ঠিকই মেসেজ পেয়ে যায় কিছু সহজলভ্য সুইসাইড টিপসের যার ফলাফল হয়তো শুরুর উক্তিটি।

সম্মানিত মনোবিদগণ, প্লিজ মাইণ্ড  করবেন না। আমি আপনাদের জগতে অনধিকার প্রবেশ করতে চাই না। বরং মার্কেটিংয়ের একজন শিক্ষার্থী-শিক্ষক হিসেবে শুধু LOVE-এর বাণিজ্যের এই নতুন ছকটাকেই একটু বুঝতে চাই যা আমার ছোট ভাই বা বোন বা প্রিয় কোন শিক্ষার্থীর জীবন কেড়ে নিচ্ছে প্রতিনিয়ত। কখনও তাকে একেবারেই শিকার করছে, আবার কখনও তাকে বানিয়ে তুলছে হাসি-কান্নার জগতের এক জীবন্ত পুতুল।

প্রিয় প্রজন্ম, তুমি কি সুইসাইড মার্কেটিংয়ের এই ট্র্যাপ নিয়ে একবারও ভাববে না? একবারও তোমার মায়ের মায়াবী মুখ, পিতার কোমল স্নেহ, আর দেশের প্রতি তোমার কর্তব্যের কথা ভাববে না? নাকি কড়িকাঠের পুতুল হিসেবে সুইসাইড মার্কেটিংয়ের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে নিজেকে absurd hero প্রমাণ করবে?

প্রিয় পাঠক, ভাবার এখনই সময়।...

26
Feeling blessed to have the opportunity to participate at an auspicious event titled “Youth Dialouge with Dr. A. P. J. Abdul Kalam” at the Ball Room of the Pan Pacific Sonargaon Hotel at last evening. I am amazed to listen to His remarkable speech where He advised to the hundreds of students of fifteen best private and public universities of Bangladesh:
 
“Be the captain of your problems… defeat problems.” He then quoted from Rumi’s poem and get that recited by the audience. He referred the examples of Thomas Alva Edison and Alexander Graham Bell and advised the young minds to dream big… set the goal of their life and fly high… He also suggested the youngsters of our country to transform their dreams into logical thinking and translate that thoughts into positive actions. The acclaimed scientist, Dr. Kalam, emphasized on the importance of the art of managing failures and suggested the students to transform their failures into success. He also pointed out the significance of leadership skills by sharing several real life examples of His 83 years’ journey of life. He also shared a heart touching “Bliss story” and asked the young minds to think of the question everyday - “What I’ll be remembered for?” Finally, He called the generation next to work for their country specially for the poor people of the country with the mission of achieving what He termed “Energy independence”.
 
My heartiest thanks go to MCCI and Grey Advertising Bangladesh Ltd for inviting us to such an event. Last but not the least, I would like to give special thanks to Montasir and Bipul, two of my students, for their nice care!
 
Right now I am truly inspired by Dr. Kalam’s auspicious speech and expecting to transform my dreams into reality.

27
২০০২ সাল। আমি তখন ঢাকা কমার্স কলেজের মার্কেটিং বিভাগে শিক্ষকতা করি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগ প্রকাশিত DU Journal of Marketing-র Vol. No. 05, 2002 সংখ্যা হাতে নিয়ে উল্টাতে উল্টাতে একঘেঁয়ে তথাকথিত ‘গবেষণা নিবন্ধ’ দেখতে দেখতে চোখ আটকে যায় একটা লেখায় “Sun Tzu’s The Art of War and Its Implications in Marketing”। নামটার মধ্যেই একটা অন্যরকম আকর্ষণ ছিলো। লেখক A. S. M.  Shahidul Haque, Marketing Manager, Padma Textiles Mills Ltd.। এক মনে পড়তে শুরু করি লেখাটা। পুরোটা একটানে পড়ে স্বস্তি অনুভব করি। প্রমোশন-প্রত্যাশী সুবিধাবাজ শিক্ষকদের মেধাহীন “Clerical Research Work”-র ভীড়ে এক ঝলক সতেজ হাওয়া হয়ে আসে লেখাটা। চিন্তার নতুন জানালা খুলে দেয়। ভাবতে থাকি সান জু ও তার বই “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” নিয়ে।
 
নিয়মিত আড্ডার বন্ধু সাংবাদিক, অনুবাদক এস. এ মামুনের সাথে একদিন কথাচ্ছলে শেয়ার করি সান জু’র বইয়ের কথা। মামুন উৎসাহ দেখায়। জানায় যে সেও বইটার খোঁজে আছে এবং হাতে পেলে অনুবাদ করার ইচ্ছা রাখে। মামুনের আগ্রহ আমাকেও অনুপ্রাণিত করে। শুরু হয় স্বপ্নের জাল বোনা।
 
এরপর কেটে যায় অনেকটা সময়। জীবনের জঙ্গমতা অনেক কিছু ভুলিয়ে দেয়। মন থেকে দূরে সরে যায় সান জু ভাবনা।
 
প্রায় সাত বছর পর ২০০৯ সালে নতুন কর্মক্ষেত্র হিসেবে আমি যোগদান করি ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে। আমাকে বলা হয় “মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি” কোর্সটি বিবিএ শিক্ষার্থীদের পড়াতে। বিস্মৃতির অতল থেকে উঠে আসেন সান জু  ও আমার লুপ্তপ্রায় স্বপ্ন।
 
ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করে অনেকটা ঝুঁকি নিয়ে সিনিয়র সহকর্মীদের “রাডার চোখের” আড়ালে শুরু করি “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইটি পড়ানো। মূলতঃ শিক্ষার্থীদের বিপুল উৎসাহই আমার স্বপ্নের পালে বাতাস দিয়ে যায়। শিক্ষার্থীদের উস্কে দেই চ্যালেঞ্জ নিতে, বইটির বাংলা অনুবাদ করতে। কিন্তু কাজ আর হয় না। দুই একজন যে উৎসাহ দেখায় না, তা নয়। কিন্তু প্রায় আড়াই হাজার বছর পুরোনো একটা কাঠখোট্টা বই অনুবাদ করার জন্য তা যথেষ্ট বলে মনে হয় না। এভাবে বছর চলে যায় একের পর এক। কিন্তু অনুবাদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যায়। এরই মধ্যে ২০১২ সালের সামার সেমিস্টারের আমার একদল ছাত্রী, সংখ্যায় সাত, তাদের আগ্রহের কথা জানায়। যথারীতি আমিও তাদের উৎসাহিত করি। কিন্তু সত্যি বলতে আমি নিজে খুব একটা আশা করি নি। কিন্তু আমাকে সম্পূর্ণ ভুল প্রমাণিত করে ক্লাস-পরীক্ষা-অ্যাসাইনমেন্ট-প্রেজেন্টেশনের চাপ সামলে প্রায় চার মাসের নিরলস পরিশ্রম শেষে তারা ঠিকই একে একে শেষ করে ফেলে বইটির তের অধ্যায়ের অনুবাদের কাজ। আমি একাধারে বিষ্মিত হই, গর্বও অনুভব করি। আমার নিরাশার সন্ধ্যা নতুন ভোরের দেখা পায়।
 
এরই মধ্যে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কর্মকর্তা বন্ধুপ্রতিম কিবরিয়া ভাইয়ের সৌজন্যে হাতে এসে পৌঁছায় “আর্ট অফ্ ওয়ার”-এর Griffith-র ইংরেজী অনুবাদ। ইন্টারনেট ঘেঁটে একে একে যোগাড় করি ইংরেজি অনুবাদের পিডিএফ কপি, অডিও, ও ভিডিও ক্লিপসহ নানা প্রাসঙ্গিক আলোচনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের  এমআইএস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ আনিসুর রহমান সুদূর চীন থেকে উপহারস্বরূপ  এনে দেন চায়নিজ ভাষায় প্রকাশিত “দি আর্ট অফ ওয়ার” বইটির চীনা সংস্করণ। বিভিন্ন দোকান ঘুরে ঘুরে সংগ্রহ করি পেঙ্গুইন প্রকাশিত বইটির ইংরেজী কাব্যরূপ এবং মিডিয়া কর্পোরেশন প্রকাশিত এ। Michelson রচিত “The Art of War for Managers” শীর্ষক অসামান্য গুরুত্বপূর্ণ বইটি। আমি আমার প্রায় এক যুগের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ঝাঁপিয়ে পড়ি। শুরু হয় অনুবাদ সম্পাদনার কাজ।
 
ঢাকা কমার্স কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক আমার প্রাক্তন সহকর্মী সুহৃদ শামিম আহসানের প্রায় তিন মাসের নিরলস পরিশ্রমের ফলে অনুবাদ সম্পাদনার প্রাথমিক পর্ব শেষ হয়। শিক্ষার্থীদের করা অনুবাদ কিছুটা দুর্বল থাকায় শামিম ভাই বলতে গেলে প্রায় পুরো বইটাই নতুন করে অনুবাদ করে ফেলেন। এরপর শুরু হয় সম্পাদনার দ্বিতীয় পর্বের কাজ। ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রাক্তন সহকর্মী অনুজপ্রতিম মনিরুজ্জামান সরকারের সাথে আমার দুর্দান্ত টিম ওয়ার্কের ফলে প্রায় দুই মাসের মধ্যে শেষ হয় সম্পাদনার দ্বিতীয় পর্বও। এরপর কম্পিউটার কম্পোজ, প্রুফ রিডিং, ও আনুষঙ্গিক কাঁটাছেঁড়ার মধ্য দিয়ে পার হয় আরও প্রায় দুই মাস। অবশেষে প্রায় দেড় বছরের পরিশ্রম শেষে বই আকারে হাতে আসে সান জু’র “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইটির বাংলা অনুবাদের চূড়ান্ত খসড়া।
 
এখন প্রশ্ন হলো কেন আমরা, সেন্টার ফর মার্কেটিং সায়েন্স (সিএমএস), এই বইটার বাংলা অনুবাদ প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করলাম। এর তাৎপর্যই বা কি? এই প্রশ্নের উত্তর বোঝার জন্য আমাদের ফিরে তাকাতে হবে আড়াই হাজার বছর আগের প্রাচীন চীনে। সেই সময়ের চীনের অন্যতম শক্তিশালী সাম্রাজ্যের ... প্রধান সেনাপতি সান জু (কেউ কেউ বলেন সুন জু) তাঁর সম্রাটের আদেশে যুদ্ধজয়ের কৌশল সম্পর্কে তাঁর ভাবনা ও অভিজ্ঞতার আলোকে রচনা করেন “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইটি। আকারে ছোট এই বইটা সেই বিবেচনায় “The Oldest Book on Strategy” হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। প্রথম পর্যায়ে বাঁশের বাতা দিয়ে বিশেষভাবে তৈরী Bamboo Book হিসেবে সংরক্ষিত হয় অমূল্য এই বইটি। প্রাচ্যের জ্ঞানসম্পদের অন্যতম শ্রেষ্ঠ নিদর্শন এই বই যুদ্ধ কৌশলের মৌলিক গ্রন্থ হিসেবে সারা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত বহুল সমাদৃত। বিশ্বের প্রতিটি দেশের সেনাবাহিনীর প্রত্যেক কর্মকর্তার জন্য অবশ্য পাঠ্য এই বই।
 
শুধু তাই নয়, প্রতিটি বহুজাতিক কোম্পানীর প্রতিযোগিতা কৌশল (Competitor Strategy) প্রণয়নে এই বইয়ের শিক্ষাকে পাথেয় হিসেবে অনুসরণ করা হয়। বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের যে কোন শিক্ষার্থী ব্যবসায়ের যে প্রাথমিক কৌশলগুলো শিখে নিজের হাত পাকায় তার প্রায় প্রতিটা কৌশল যেমন SWOT Analysis, Fast  Mover’s Advantage, Segmentation-Targeting-Positioning (STP), Cost-Benefit Analysis, Environmental Analysis, Back-up Plan রাখা  ইত্যাদির ধারণা মূলতঃ এই বই থেকেই নেয়া। আজকের পৃথিবীতে প্রায় প্রতিটি সফল কোম্পানির নির্বাহীদের জন্য এক অবশ্যপাঠ্য বই সান জু’র “দি আর্ট অফ্ ওয়ার”।
 
শুধু সেনাবাহিনী বা বহুজাতিক কোম্পানী নয়, সান জু’র “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইয়ের কৌশলসমূহের প্রয়োগ সাফল্য বয়ে নিয়ে এসেছে অন্য কর্মক্ষেত্রগুলোতেও। ১৯৯৪ সালে লুই ফেলিপ স্কলারির অসামান্য কোচিংয়ে প্রায় ২৪ বছর পর ফুটবল বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করে ব্রাজিল ফুটবল দল। নিজের অনন্য কোচিং সাফল্যের রহস্য উম্মোচন করে স্কলারি পুরো কৃতিত্ব দেন সান জু’কে। ফুটবল মাঠে “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইয়ের কৌশলসমূহের সফল প্রয়োগের মাধ্যমেই যে তার তারুণ্যনির্ভর দল বিশ্বকাপ শিরোপা পুণরুদ্ধার করে সেটা নিশ্চিত করেন তিনি। একইভাবে ২০০৩ সালে ক্রিকেটে বিশ্বকাপজয়ী অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলও ঘোষণা করে যে সান জু’র যুদ্ধজয়ের কৌশলের সফল প্রয়োগের মাধ্যমেই এসেছে তাদের এই সাফল্য।
 
প্রায় চল্লিশটি ভাষায় অনুদিত এই অসামান্য বইটি পৃথিবীর প্রত্যেকটি নামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অবশ্যপাঠ্য হলেও নিতান্তই দুর্ভাগ্যবশতঃ বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এটি ভীষণভাবে উপেক্ষিত। মূলতঃ পাশ্চাত্যজ্ঞানে মোহাচ্ছন্ন সৃজনশীল চিন্তায় অক্ষম আমাদের শিক্ষকমন্ডলীর মূলধারার জ্ঞানসীমার বাইরেই থেকে গেছে সমগ্র পাশ্চাত্যকে মুগ্ধ করে রাখা প্রাচ্যের এই অমূল্য জ্ঞানসম্পদটি। তবে আমাদের দেশের কর্পোরেট ওয়ার্ল্ডের সৃজনশীল অংশ ঠিকই এই মূল্যবান বইয়ের শিক্ষাকে তাদের মতো করে প্রয়োগ করে চলেছেন সফলভাবে।
 
চিরায়ত শাস্ত্র হিসেবে বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের Strategic Marketing, Strategic Management, Corporate Strategy, Business Policy and Strategy কোর্সগুলোতে এই বইটার অপরিসীম গুরুত্ব অনস্বীকার্য। সান জু’র “Win Without War” (www)-র অসাধারণ ধারণা বর্তমান hyper competitive market-র যুগে কোম্পানিগুলোর প্রতিযোগিতাকৌশল নিরুপণে অনন্য ভূমিকা রাখবে বলেই আমার বিশ্বাস।
 
বাংলাদেশের বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রত্যেক শিক্ষার্থী-শিক্ষক, কর্পোরেট নির্বাহী এবং সেনাকর্মকর্তার জন্য অবশ্যপাঠ্য বই হিসেবে “দি আর্ট অফ্ ওয়ার” বইটির বাংলা অনুবাদ বাংলা ভাষার সামগ্রিক জ্ঞানভান্ডারকে সমৃদ্ধ করবে এ ব্যাপারে আমার কোন সন্দেহ নেই। বিশ্বনাগরিক হিসেবে আমাদের বর্তমান প্রজন্মকে চিরায়ত শাস্ত্রের সাথে পরিচয় করানো, তাদেরকে ইতিহাসমুখী করে তুলে ঐতিহ্যের নির্যাস গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে তোলা এবং তার শিক্ষাকে বর্তমান সমাজ বাস্তবায়তায় প্রয়োগ করতে সচেষ্ট করার তাগিদ থেকেই সেন্টার ফর মার্কেটিং সায়েন্স (সিএমএস) এই অনুবাদ গ্রন্থ প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। আমাদের এই প্রচেষ্টা কোন রকম বাণিজ্যিক উদ্দেশে পরিচালিত নয়। বরং মাতৃভাষায় মৌলিক জ্ঞানচর্চাকে উৎসাহিত করা এবং বৈশ্বিক জ্ঞানসম্পদের সাথে নিজ ভাষার সম্পর্ক স্থাপন করার প্রতি সেন্টার ফর মার্কেটিং সায়েন্সের অঙ্গীকারের প্রতিফলন হিসেবেই আমরা এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। সেন্টার ফর মার্কেটিং সায়েন্স (সিএমএস) স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষার্থী-গবেষকদের প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠতে চায়। আমাদের এই প্রকাশনা সেই আকাঙ্ক্ষারই বহিঃপ্রকাশ মাত্র।

28
"বাণিজ্যতে যাবো আমি সিন্দাবাদের মতো" - ছেলেবেলায় পড়া এরকম একটা ছড়া থেকেই কিনা জানি না নিজের ভেতরে ব্যবসার প্রতি একটা আগ্রহ শুরু হয়েছিলো জীবনের প্রথম দিকেই। আমার মেজো ভাই খুব উৎসাহী ছিলেন ব্যবসার প্রতি। মনে আছে, ছোটবেলায়, আমি তখন ক্লাস ওয়ান বা টুয়ে পড়ি আর মেজো ভাই ক্লাস ফাইভ বা সিক্সে পড়ে, ওর সাথে দোকান দোকান খেলতাম আমরা। ও বাজার থেকে আমাদের আগ্রহের অনেক পণ্য যেমন চকোলেট-বিস্কিট-কলা ইত্যাদি কিনে নিয়ে এসে বাসার সামনে দোকান সাজিয়ে বিক্রী করতো। আর আমরা, ছোটরা, অতি আগ্রহের সাথে অবাক হয়ে ওর দোকানের চারপাশে ভিড় করে থাকতাম। সন্ধ্যা বেলায় ও যখন আমাদেরকে বলতো যে ওর কত টাকা লাভ হয়েছে আমরা অবাক হয়ে শুনতাম। তখনও ব্যবসা-লাভ-ক্ষতি-কেনা-বেচা - এই বিষয়গুলো ঠিকমতো বুঝতাম না। কিন্তু মেজো ভায়ের সেই ক্ষুদ্রতম উদ্যোগ ব্যবসা সম্পর্কে আমার মনে এক স্থায়ী ইতিবাচক দাগ কেটে যায়। একটু বড় হয়ে যখন মা বললো কমার্সে পড়তে তখন বেশ খুশী হয়েছিলাম মনে মনে। আমার চেয়ে অনেক 'খারাপ' ছাত্ররাও যখন সায়েন্সে পড়ে ভাব নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে তখন আমি আগ্রহ নিয়েই কমার্সে পড়া শুরু করি। তারপর নারদ আর পদ্মায় অনেক জল বয়ে যায়।
 
স্কুল জীবন শেষে ইন্টারমিডিয়েটে পড়ার সময় ধীরে ধীরে ব্যবসার প্রতি আমার ইতিবাচক মনোভাব পাল্টাতে থাকে। বিভিন্ন কোম্পানির কথা ও কাজের মধ্যে অমিলগুলো আমার মনে দ্বিধার জন্ম দেয়। ধীরে ধীরে বুঝতে পারি কিছু ব্যতিক্রম বাদে বেশিরভাগ কোম্পানিই মানুষকে ঠকিয়ে মুনাফা অর্জন করছে। নকল পণ্যকে আসল পণ্য বলে বিক্রী করা, ওজনে কম দেয়া, অযৌক্তিকভাবে দাম বেশি রাখা, ভেজাল-পচা পণ্য বিক্রী করা ইত্যাদি খবর দেখতে দেখতে শুনতে শুনতে পড়তে পড়তে সেই কলেজ লাইফেই ব্যবসার প্রতি নেতিবাচক মনোভাব জন্ম নেয়। তাদের এইসব কর্মকাণ্ড দেখে মনে হতে থাকে যে ব্যবসা মানেই ধোকাবাজি আর ব্যবসায়ী মানেই খারাপ মানুষ। আফসোস হতে থাকে ক্যানো কমার্সে পড়তে আসলাম!
 
এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগে পড়তে এসে কিছুদিনের মধ্যেই আমার সব দ্বিধা-দ্বন্দ্বের অবসান হয়। ততদিনে ব্যবসার আরও কদর্য রূপ আমার চোখে ধরা পড়ে। আমি বুঝতে পারি খুবই অল্প কিছু মানুষ শুধু নিজেদের মুনাফা অর্জনের স্বার্থে সমাজের সব শুভচিন্তাকে উপেক্ষা করে, পরিবেশ দূষণ করে, সভ্য সমাজের সব রকমের আইন-কানুন, রীতি-নীতিকে বৃ্দ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে, শিশু-নারীসহ সর্বস্তরের সকল পেশার মানুষকে মর্যাদাহীন করে এমন এক সমাজ ব্যবস্থার প্রচলণ করে যেখানে মুনাফাই হচ্ছে একমাত্র ঈশ্বর। আর সবই নগণ্য, তুচ্ছ, গোলাম মাত্র। সময়ের বিবর্তনে ব্যবসার প্রতি আমার নেতিবাচক মনোভাব খুব নিরবে ঘৃণায় পরিণত হয়। নিজের মূল্যবোধের সাথে নিজের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার এই নৈতিক দ্বন্দ্ব ভীষণ যন্ত্রনার সৃষ্টি করে আমার মনে। আমি পরিত্রাণের পথ খুঁজতে থাকি। পালাতে চাই, পারি না।
 
পড়াশোনা শেষে জীবনের প্রয়োজনে এক সময় শিক্ষকতা শুরু করি। দেখতে দেখতে কেটে যায় চৌদ্দ বছর। কিন্তু আজও আমি উত্তর খুঁজে বেড়াই। আজও কোন ক্লাসে পড়ানোর সময় ভেতরে ভেতরে কুণ্ঠিত হয়ে পড়ি। আজও বিভিন্ন কোম্পানির বল্গাহীন লোভী কর্মকাণ্ড প্রতিদিন টিভিতে-পত্রিকায়-ম্যাগাজিনে-বিলবোর্ডে-ইন্টারনেটে দেখে পড়ে শুনে অসুস্থ বোধ করি। ভাবতে থাকি এর শেষ কোথায়?
 
লাভের বাণিজ্য ধীরে ধীরে আমাদের লোভের বাণিজ্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। ব্যবসা করলে লাভ হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু লাগামহীন লাভের পিছে ছুটে চলা তো মানুষকে লোভী প্রাণীতে পরিণত করে। তাহলে কি আমরা মানুষ-প্রকৃ্তি-সমাজ সব ভুলে শুধুই অন্তহীন লোভের পিছে ছুটে চলবো? এটাই কি অন্টারপ্রিনিওরশীপ স্পিরিট? এর জন্যই কি দেশে এতো এতো আইন-কানুন! এজন্যই কি আমাদের এতো এতো পড়াশোনা, এতো এতো গবেষণা-পিএইচডি-প্রমোশন তৎপরতা?... আমি তা মনে করি না। যে ব্যবসা বা যে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড আমাদের লোভী প্রাণীতে রূপান্তর করছে প্রতিনিয়ত তাকে আমি ব্যবসা বলে মনে করি না। যে ব্যবসা বা যে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড দেশ-জাতি-ধর্ম-মানবিকতা-সমাজ-সভ্যতা-মানুষ-প্রকৃ্তি'র তোয়াক্কা করে না তাকে আমি সমর্থন করি না। এদের বিরুদ্ধে কথা বলা আমাদের নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ব...।

29
Most of my students ask me, “Sir, how can I enrich my career?” Many of them are bright and want to lift their career up to a very high level. But the problem is, they have almost no idea about the challenges of making career successful. A good number of them even do not understand the proper meaning of the word ‘career’. In most cases, people think career means a “good job”. And they translate “good job” as a “job with high salary”. But ‘job’ is not the only way to ensure your better career. Similarly, “high salary” is not the only indicator of a good job. If you are truly committed to boost up your career, if you want to achieve an extra-ordinary position in your life, you must understand the underlying preconditions of getting success of your career.
 
I am passing fourteenth year of my career. During this long time period, I have worked for a consultancy firm as a Research Associate, a couple of national newspapers as a Journalist, a bank as a Senior Officer, and then for several private universities and a College as a Faculty. Altogether, I have switched my job for nine times and my current job is my tenth job. At the very beginning, I was a confused, less confident job-seeker. Over the time, I have learnt many more things from my failures which helped me to come to my present position. In the last ten years, my salary has been increased more than fourteen times and I have achieved a better position than many of my classmates who had better academic results. From my own experience, I have realized the inherent meaning of the word ‘Career’ in the following way:
 
                C = Creativity
                A = Attitude, Adaptability
                R = Rationality, Reflection of the Reality
                E = Energy, Enthusiasm
                E = Efficiency, Effort
                R = Result-oriented, Risk-taker
 
In summary, I can say that to be successful in career one must be creative, must control his/her attitude, must adapt himself/herself with new environment, must be rational, must understand the reality, must have high energy level, must be enthusiastic, must be efficient, must show high effort, must be result-oriented, and finally, s/he must be a risk-taker.
 
 
Bottom Line:
If you want to be successful in your career, focus it right now. Otherwise, you will be “planning to fail” in your career.

30
It is said that BBA makes a person “the jack of all trades, but master of none”. To me, the inherent meaning of this statement is NETWORKING. It is expected that a BBA graduate will not have specialized knowledge on a particular area of business. Rather, s/he will have an overall understanding of a business. S/he will be able to manage the “nuts and bolts” of a business. And to do so, s/he will require an extensive network.

In everyday operation, the company may face hundreds of problems. As a manager, you will be entitled to solve all those problems. You must work like a Jack who can manage all odds in a company.

Now, the question may come, how to build networks? The answer is simple: it depends on your life style. Networking starts with a mindset: Yes, I will build my own circle who will work for me. Wherever you go, whatever you do, you will meet many people. Have the details of those persons you consider important for you, for your profession. And then, maintain the relationship. Keep that person in touch. Update the relationship. Try to understand what s/he needs from you or what s/he can give you. Then get the moment going on, is that clear?

Networking is simple. Networking is hard. Because you have to have the interest to know the unknowns, to embrace all the disliking matters and you must enjoy doing so. You must have an open mind to get a positive result in networking.

Punch Line: Remember, maintaining the old relationships are more important than building new relationships as old is always GOLD.

Pages: 1 [2] 3 4 5